গাইবান্ধায় শীতবস্ত্র বিতরণ সেনাপ্রধানের

player
গাইবান্ধায় শীতবস্ত্র বিতরণ সেনাপ্রধানের

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে বৃহস্পতিবার শীতবস্ত্র বিতরণ করেন সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। ছবি: আইএসপিআর

সেনাপ্রধানের নির্দেশে প্রতি বছরের মতো এবারও শীত মৌসুমে দরিদ্র ও শীতার্ত মানুষের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণসহ জনসেবামূলক কাজ পরিচালনা করছে সেনাবাহিনী।

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে অসহায় ও দুস্থদের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ করেছেন সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ।

৬৬ পদাতিক ডিভিশন ও রংপুর অঞ্চল পরিদর্শনে গিয়ে বৃহস্পতিবার শীতার্ত মানুষের মধ্যে বস্ত্র বিতরণ করেন তিনি।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

সেনাপ্রধানের নির্দেশে প্রতি বছরের মতো এবারও শীত মৌসুমে দরিদ্র ও শীতার্ত মানুষের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণসহ জনসেবামূলক কাজ পরিচালনা করছে সেনাবাহিনী।

এরই ধারাবাহিকতায় ৬৬ পদাতিক ডিভিশনের শীতকালীন প্রশিক্ষণ পরিদর্শন শেষে গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জের বামনডাঙ্গার বৈদ্যনাথ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে সেনাপ্রধান স্থানীয় হতদরিদ্র ৫০০ মানুষের মধ্যে কম্বল বিতরণ করেন।

শীতবস্ত্র বিতরণ ছাড়াও সেনাবাহিনীর মেডিক্যাল টিম বিনা মূল্যে মানুষের স্বাস্থ্যসেবা ও গবাদি পশুর চিকিৎসাসেবা দিচ্ছে বলেও জানান সেনাপ্রধান।

তিনি বলেন, ভবিষ্যতেও বাংলাদেশ সেনাবাহিনী এ ধরনের জনসেবামূলক কাজ অব্যাহত রাখবে।

রংপুর অঞ্চল পরিদর্শনকালে সেনাপ্রধানের সঙ্গে ৬৬ পদাতিক ডিভিশন জিওসি ও রংপুর এরিয়া কমান্ডার মেজর জেনারেল মো. ফয়জুর রহমান এবং সেনাবাহিনীর জ্যেষ্ঠ সামরিক কর্মকর্তা ও স্থানীয় প্রভাবশালীরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
সিরাজগঞ্জে দুস্থদের মাঝে সেনাপ্রধানের শীতবস্ত্র বিতরণ
খুরুশকুল পরিদর্শনে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে ভারত ও রুশ প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে মেক্সিকো সেনাবাহিনীর কমান্ডারের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে কানাডার হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে মোমেনের ফোন

মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে মোমেনের ফোন

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন। ফাইল ছবি

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন চলতি বছর বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কের সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে মালয়েশিয়ান পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানান এবং দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার বর্তমান স্তরে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী শ্রী সাইফুদ্দিন আবদুল্লাহর সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেছেন।

বৃহস্পতিবার এই টেলিফোন আলাপের সময় তারা পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে মতবিনিময় করেন বলে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন চলতি বছর বাংলাদেশ ও মালয়েশিয়ার মধ্যে কূটনৈতিক সম্পর্কের সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে মালয়েশিয়ান পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানান এবং দ্বিপাক্ষিক সহযোগিতার বর্তমান স্তরে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

বাংলাদেশ-মালয়েশিয়া দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের প্রশংসা করে সাইফুদ্দিন আবদুল্লাহ সম্পর্কটিকে ‘কৌশলগত পর্যায়ে’ উন্নীত করার ওপর জোর দেন।

টেলিফোন আলাপে মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশি কর্মী নিয়োগের বিষয়ে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের প্রশংসা করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন অর্থনীতির সব সেক্টরে বাংলাদেশি কর্মীদের নিয়োগের সুযোগ উন্মুক্ত করার বিষয়ে মালয়েশিয়া সরকারের সিদ্ধান্তের প্রশংসা করেন।

তিনি নিরাপদ ও নিয়মিত অভিবাসন চ্যানেলের মাধ্যমে আরও কর্মী পাঠানোর মাধ্যমে মালয়েশিয়ার অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ও কর্মকাণ্ডে অবদান রাখতে বাংলাদেশ সরকারের প্রস্তুতির কথা জানান। মন্ত্রী মোমেন মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে বাংলাদেশ থেকে তথ্যপ্রযুক্তি-প্রশিক্ষিত জনশক্তি নিয়োগের বিষয়টি বিবেচনা করার অনুরোধ জানান।

সাইফুদ্দিন আবদুল্লাহ দুই দেশের আইসিটি কর্তৃপক্ষের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সহযোগিতার মাধ্যমে ডিজিটাল অর্থনীতির ক্ষেত্রে সহযোগিতা সম্প্রসারণের ওপর জোর দেন।

রোহিঙ্গা সংকট মোকাবিলায় সব ক্ষেত্রে মালয়েশিয়ার সহায়ক ভূমিকার প্রশংসা করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন বাংলাদেশ থেকে রোহিঙ্গাদের তাদের মাতৃভূমি মিয়ানমারে দ্রুত প্রত্যাবাসন শুরু করার জন্য মালয়েশিয়াকে অব্যাহত সমর্থনের অনুরোধ জানান। মোমেন মালয়েশিয়া সরকারকে তাদের অর্ধ মিলিয়নেরও বেশি করোনার টিকা অনুদানের জন্য ধন্যবাদ জানান।

বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার ক্ষেত্রে বাংলাদেশের ভূমিকার প্রশংসা করে সাইফুদ্দিন বলেন, ‘মিয়ানমার থেকে ১১ লাখেরও বেশি বাস্তুচ্যুত মানুষকে আশ্রয় দেয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশাল মানবিক পদক্ষেপের জন্য সমগ্র বিশ্ব কৃতজ্ঞ।’

মোমেন বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও বৈশ্বিক ফোরামে বাংলাদেশি প্রার্থিতার পক্ষে মালয়েশিয়ার সমর্থন চান। মালয়েশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী পারস্পরিক সুবিধার সময়ে বাংলাদেশ সফরে সম্মত হন। এ সময় দুই পররাষ্ট্রমন্ত্রী নববর্ষের শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

আরও পড়ুন:
সিরাজগঞ্জে দুস্থদের মাঝে সেনাপ্রধানের শীতবস্ত্র বিতরণ
খুরুশকুল পরিদর্শনে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে ভারত ও রুশ প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে মেক্সিকো সেনাবাহিনীর কমান্ডারের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে কানাডার হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

শেয়ার করুন

লবিস্ট ফার্মে দেয়া অর্থের হিসাব দিতে হবে বিএনপিকে: প্রধানমন্ত্রী

লবিস্ট ফার্মে দেয়া অর্থের হিসাব দিতে হবে বিএনপিকে: প্রধানমন্ত্রী

জাতীয় সংসদে শীতকালীন অধিবেশনের শেষ দিনে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিজের সমাপনী বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি ভিডিও থেকে নেয়া

নির্বাচন সামনে রেখে লবিস্টের অর্থের হিসাব দিতে হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পাঁচ বছর, ২০০১ থেকে ক্ষমতায় থেকে জনগণের টাকা লুট করে, পাচার করে, সেই টাকা দিয়ে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত। কেন? যাদের দেশপ্রেম নেই, জনগণের প্রতি যাদের দায় নেই, জনগণের মঙ্গল চায় না, তারাই বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা থামাতে চায়।’

অর্থ পাচার করে দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র করতে লবিস্ট ফার্মে বিনিয়োগ করা কোটি কোটি ডলারের হিসাব বিএনপিকে দিতে হবে বলে সংসদে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। র‌্যাবের সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তাদের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের আরোপ করা নিষেধাজ্ঞার জন্য দেশটির প্রশাসনকে নয়, বরং ‘ঘরের ইঁদুর’ বিএনপিকে দুষছেন সরকারপ্রধান।

জাতীয় সংসদে শীতকালীন অধিবেশনের শেষ দিনে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় নিজের সমাপনী বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

লবিস্ট ফার্মে বিএনপির বিনিয়োগের একটি তালিকা দেখিয়ে তা স্পিকারের কাছে জমা দেয়া হবে জানান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘কত লাখ ডলার এই বিএনপি খরচ করেছে। লাখ লাখ ডলার তারা লুট করেছে, কোটি কোটি ডলার তারা বিনিয়োগ করেছে। আমার প্রশ্ন, এই অর্থ তারা কোথা থেকে পেল? এটা তো বৈদেশিক মুদ্রা। এই বৈদেশিক মুদ্রা তারা কোথা থেকে পেয়েছে? কীভাবে খরচ করেছে? কীভাবে তারা লবিস্ট রেখেছে?

‘সেই লবিস্ট কিসের জন্য? যুদ্ধাপরাধীদের বিচার ঠেকানোর জন্য, নির্বাচন বানচাল করার জন্য, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্য, জঙ্গিদের রক্ষার জন্য, জাতির পিতার হত্যাকারীদের রক্ষার জন্য, বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য, বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে সেটাকে বাধা দেয়ার জন্য। কোনো ভালো কাজের জন্য নয়।’

অসত্য তথ্য দিয়ে বিএনপি সবাইকে বিভ্রান্ত করে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘এই অর্থ কোথা থেকে এসেছে, এই অর্থ কীভাবে বিদেশে গেল, বিদেশি ফার্মকে লাখ লাখ কোটি কোটি ডলার তারা পেমেন্ট করল, জবাব তাদের দিতে হবে, ব্যাখ্যা দিতে হবে।’

নির্বাচন সামনে রেখে লবিস্টের অর্থের হিসাব দিতে হবে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘পাঁচ বছর, ২০০১ থেকে ক্ষমতায় থেকে জনগণের টাকা লুট করে, পাচার করে, সেই টাকা দিয়ে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র, চক্রান্ত। কেন? যাদের দেশপ্রেম নেই, জনগণের প্রতি যাদের দায় নেই, জনগণের মঙ্গল চায় না, তারাই বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা থামাতে চায়।’

তিনি বলেন, ‘জনগণের প্রতি আমার বিশ্বাস আছে, আস্থা আছে, ওই সব কথায় তারা বিভ্রান্ত হয় না। আমার বিশ্বাস।’

‘ঘরের ইঁদুর বাঁধ কাটলে কাকে দোষ দেবেন?’

র‌্যাবের সাবেক ও বর্তমান কর্মকর্তাদের ওপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা নিয়ে দেশটির কড়া সমালোচনা করেন সরকারপ্রধান। তুলে ধরেন হলি আর্টিজান পরিস্থিতি সফলভাবে সামাল দেয়ার বিষয়টি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘যাদের তারা স্যাংশন দিল, তাদের হিসাব যদি করি তারা সন্ত্রাস দমনে ব্যাপক ভূমিকা রেখেছিল। তারা কেন আমেরিকার কাছে এত খারাপ হলো। সব থেকে ভালো ভালো অফিসার যারা সেই অপারেশনে (হলি আর্টিজান) ছিল। সেই সঙ্গে বাংলাদেশে কিন্তু আর কোনো সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটতে পারেনি।’

জনগণকে সম্পৃক্ত করেই জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস দমনে বাংলাদেশ সাফল্য পেয়েছে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘আমার মনে হয় যারা সন্ত্রাস দমনে সফল, যারা জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসবাদ থেকে দেশটাকে রক্ষা করতে পেরেছে, সাধারণ মানুষের জীবন রক্ষা করেছে, সাধারণ মানুষের মানবাধিকার সংরক্ষণ করেছে, তাদের ওপরই যেন আমেরিকার রাগ।’

তার পরও আমেরিকাকে দোষ দিতে চান না প্রধানমন্ত্রী। নিজের যুক্তি তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমেরিকাকে আমি দোষ দিই না। ঘরের ইঁদুর বাঁধ কাটলে কাকে দোষ দেবেন?’

নির্বাচন প্রসঙ্গ

পঁচাত্তর-পরবর্তী দেশে অবৈধভাবে ক্ষমতা দখল এবং নির্বাচনের নানা দিক নিয়ে আলোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী। নির্বাচন নিয়ে বিরোধীদের সমালোচনার জবাবও দেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জের সিটি করপোরেশন ইলেকশন- এটাই তো প্রমাণ করে দেয় আওয়ামী লীগের অধীনে নির্বাচন অবাধ, নিরপেক্ষ, সুষ্ঠু হতে পারে এবং হয়।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘মানুষের ভোটের অধিকার রক্ষা করা আমাদের কাজ, কেড়ে নেয়া নয়। আমরা সেটা রক্ষা করে যাচ্ছি এবং যাব।’

নির্বাচন কমিশন গঠনে পাস হওয়া বিল এই অধিবেশনে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই বিলে ২২টি সংশোধনী বিরোধী দলের কাছ থেকে গ্রহণ করা হয়েছে। জাতীয় পার্টির সংশোধনী, বিএনপির সংশোধনী, জাসদের সংশোধনী, ওয়ার্কার্স পার্টির সংশোধনী- সবার সংশোধনী গ্রহণ করেছি। তাতে এই বিল আর সরকারি বিল না, এটা বিরোধী দলের তৈরি করা বিল হয়ে গেছে। একটা বিলে যদি ২২টি সংশোধনী গ্রহণ করা হয়, এটা অধিকাংশই তো হয়ে গেল বিরোধী দলের।’

বিএনপি শাসনামলের বিভিন্ন ঘটনাও তুলে ধরে সংসদ নেতা বলেন, ‘আজ ২৭ জানুয়ারি, সাবেক অর্থমন্ত্রী শাহ এম এস কিবরিয়া সাহেবকে গ্রেনেড মেরে হত্যা করা হয়েছিল। সেই হত্যাকাণ্ডেও বিএনপি জড়িত। সেটাও বেরিয়েছে। কিন্তু দুর্ভাগ্য যে এই বিচারের কাজটায় বারবার বাধা দিচ্ছে তার পরিবার। যখন বিচারকাজ শুরু হয়, তখন একটা বাধা দেয়। কেন দেয় আমি জানি না।’

২০০৭ সালে জরুরি অবস্থা জারি হওয়ার পর কারান্তরীণ দিনগুলোর কথা স্মরণ করেন প্রধানমন্ত্রী। ওই সময়ে দেশকে মধ্য আয়ের দেশে উন্নীত করার বিষয়ে নিজের ভাবনার কথাও তুলে ধরেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘চিন্তা করেছিলাম এই দেশটাকে আমি এভাবে পিছিয়ে যেতে দেব না।’

পঁচাত্তর-পরবর্তী তার শরণার্থী জীবনের কথাও উঠে আসে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে। তিনি বলেন, ‘দেশের স্বার্থে, জনগণের স্বার্থে, জনগণের কল্যাণে এবং স্বাধীনতাকে অর্থবহ করে মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের প্রতিজ্ঞা নিয়ে দেশে ফিরেছিলাম।’

বাংলাদেশ উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উন্নীত হওয়ার প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘অনেক বাধা, অনেক বিপত্তি, অনেক গুলি, অনেক গ্রেনেড, অনেক কিছুই, অনেক অপপ্রচার- আমি কখনও ওসব নিয়ে চিন্তা করিনি। আমি জানি ন্যায় ও সত্য পথে থাকলে, একটা লক্ষ্য স্থির করে চললে, সেই লক্ষ্য অর্জন করতে পারব। সেই লক্ষ্য আমরা অর্জন করতে পেরেছি।’

করোনাভাইরাস মহামারির কারণে অর্থনীতি কিছুটা পিছিয়ে গেছে বলে জানান সরকারপ্রধান। তিনি বলেন, ‘সারা বিশ্বে অর্থনৈতিক মন্দা। তার মধ্যে দেশের অর্থনীতিকে সচল রাখতে সক্ষম হয়েছি। এমনকি আমেরিকার মতো দেশে আড়াই কোটি মানুষ দারিদ্র্যসীমার নিচে চলে গেছে। কিন্তু আমি বলতে পারি, বাংলাদেশে কেউ দারিদ্র্যসীমার নিচে যায়নি এই করোনাকালে। বরং দারিদ্র্যের হার বিএনপির আমলের ৪০ ভাগ থেকে ২০ ভাগে নামিয়ে এনেছি, আমি বিশ্বাস করি আমরা আরও কমাতে পারব।’

দেশে খাদ্য ঘাটতি নেই জানিয়ে তিনি বলেন, ‘২০ লাখ মেট্রিক টন খাদ্য মজুত আছে। সামনে বোরো ধান আসবে। খাদ্যের কোনো ঘাটতি হবে না। কিছু জায়গায় দাম বাড়ানোর চেষ্টা করা হয়, সেটা কীভাবে নিয়ন্ত্রণ করা যায় আমরা দেখছি।’

করোনাভাইরাসের সংক্রামক ভ্যারিয়েন্ট ওমিক্রন নিয়ে সতর্ক করে করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা নিতে দেশবাসীর প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আরও পড়ুন:
সিরাজগঞ্জে দুস্থদের মাঝে সেনাপ্রধানের শীতবস্ত্র বিতরণ
খুরুশকুল পরিদর্শনে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে ভারত ও রুশ প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে মেক্সিকো সেনাবাহিনীর কমান্ডারের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে কানাডার হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

শেয়ার করুন

মংলায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষণে ৩৮ কোটি টাকার প্রকল্প

মংলায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষণে ৩৮ কোটি টাকার প্রকল্প

মংলায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ প্রকল্পে বৃহস্পতিবার ডেনমার্কের সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক। ছবি: নিউজবাংলা

ঢাকায় ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে বৃহস্পতিবার স্বাক্ষরিত স্মারক অনুযায়ী, ২ কোটি ৯০ লাখ ডেনিশ ক্রোন দেবে বাংলাদেশের ডেনিশ দূতাবাস। টাকার অঙ্কে এর পরিমাণ ৩৭ কোটি ৬৯ লাখ।

জলবায়ু-ঝুঁকিপূর্ণ বাগেরহাটের মংলা উপজেলায় বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ প্রকল্পে ডেনমার্কের সঙ্গে একটি সমঝোতা স্মারক সই করেছে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাক।

ঢাকায় ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূতের বাসভবনে বৃহস্পতিবার স্বাক্ষরিত এই স্মারক অনুযায়ী, ২ কোটি ৯০ লাখ ডেনিশ ক্রোন দেবে বাংলাদেশের ডেনিশ দূতাবাস। টাকার অঙ্কে এর পরিমাণ ৩৭ কোটি ৬৯ লাখ।

‘এনহ্যান্সিং সেফ ড্রিংকিং ওয়াটার সিকিউরিটি অ্যান্ড ক্লাইমেট রেজিলিয়েন্স থ্রু রেইন ওয়াটার হার্ভেস্টিং’ শীর্ষক প্রকল্প চলতি জানুয়ারি থেকে ২০২৪ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে। তিন বছর মেয়াদি প্রকল্পটি মংলার ছয়টি ইউনিয়নে বাস্তবায়ন করা হবে।

ব্র্যাকের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, লবণাক্ততার ভয়াবহ বিস্তারের ফলে মংলা বাংলাদেশের অন্যতম জলবায়ু-ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা। ৬০ শতাংশেরও বেশি মানুষ নিরাপদ পানীয় জলের সুবিধা পায় না। পাশাপাশি স্বাস্থ্য ও উপার্জনের অবস্থা নাজুক। ঘর-গৃহস্থালির কাজের অতিরিক্ত চাপ এবং সামাজিক নিরাপত্তাহীনতার কারণে নারী ও মেয়েরাও বৈষম্যের শিকার হয়ে ক্ষতিগ্রস্ত।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, উপজেলার সবচেয়ে জলবায়ু-ঝুঁকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর কাছাকাছি নিরাপদ পানীয় জলের একটি উৎস তৈরি করে তাদের অবস্থার উন্নয়ন করা এ প্রকল্পের উদ্দেশ্য।

ফলে লবণাক্ততা কারণে ক্ষতিগ্রস্ত মংলার ৬৭ হাজার ৩০০ মানুষ নিরাপদ পানীয় জলের সুবিধা পাবে। বাড়ি থেকে দূরের উৎস থেকে পানীয় জল আনার প্রয়োজন হবে না। এছাড়া উপজেলায় ৫৪টি ক্লাইমেট অ্যাকশন গ্রুপ করা হবে। যারা এগুলোর সমন্বয়, পরিকল্পনা এবং রক্ষণাবেক্ষণের নেতৃত্ব দেবে।

সমঝোতা স্মারক অনুষ্ঠানে ডেনমার্কের রাষ্ট্রদূত উইনি এস্ট্রাপ পিটারসন বলেন, ‘২০২৩ সালের মধ্যে ডেনমার্ক বিশ্বব্যাপী অনুদান-ভিত্তিক জলবায়ু অর্থায়নে প্রতি বছর কমপক্ষে ৫ শ মিলিয়ন ডলার দেবে। বিশ্বের সবচেয়ে জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম। এই অংশীদারত্ব ২০২২ সাল থেকে বাংলাদেশের জন্য জলবায়ু অভিযোজন এবং প্রশমন কর্মসূচির জন্য বেশ কয়েকটি ডেনিশ অঙ্গীকারের শুভ সূচনার ইঙ্গিত দেয়।’

উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষের জন্য জলবায়ু-অভিযোজিত ব্যবস্থা গ্রহণের গুরুত্ব তুলে ধরে ব্র্যাকের নির্বাহী পরিচালক আসিফ সালেহ বলেন, ‘পানীয় জল আনতে কারও দুই কিলোমিটার হেঁটে যাওয়া উচিত নয়। তবে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বাংলাদেশের উপকূলীয় অঞ্চলে পানীয় জলের তীব্র সঙ্কট দেখা দিয়েছে।

‘নিরাপদ পানীয় জল পাওয়ার এই মৌলিক মানবাধিকার নিশ্চিত করতে ব্র্যাক অবিরাম কাজ করে চলেছে। এই প্রচেষ্টায় ডেনমার্কের দূতাবাসের সমর্থনের জন্য আমরা সাধুবাদ জানাচ্ছি। আমরা একত্রে নিরাপদ পানি সরবরাহের মগ্রিক এবং টেকসই মডেল তৈরির লক্ষ্যে কাজ করব।’

ডেনমার্ক সরকারের উন্নয়ন কৌশল ‘দ্য ওয়ার্ল্ড উই শেয়ার’-এর সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে প্রকল্পটি মংলায় ক্ষুদ্র স্তরে বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করবে।

আরও পড়ুন:
সিরাজগঞ্জে দুস্থদের মাঝে সেনাপ্রধানের শীতবস্ত্র বিতরণ
খুরুশকুল পরিদর্শনে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে ভারত ও রুশ প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে মেক্সিকো সেনাবাহিনীর কমান্ডারের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে কানাডার হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

শেয়ার করুন

বিচারিক কাজ মনিটরিংয়ে ৮ বিভাগে কমিটি

বিচারিক কাজ মনিটরিংয়ে ৮ বিভাগে কমিটি

হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার গোলাম রব্বানী স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘মাননীয় প্রধান বিচারপতি দেশের আটটি বিভাগের প্রত্যেক বিভাগের জন্য হাইকোর্ট বিভাগের একজন করে মাননীয় বিচারপতি মহোদয়কে মনোনয়ন করেছেন।’

মামলা ব্যবস্থাপনাসহ সার্বিক বিষয়ে দেখাশোনার জন্য আট বিচারকের মাধ্যমে মনিটরিং কমিটি গঠন করা হয়েছে।

প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকীর নির্দেশে বৃহস্পতিবার সুপ্রিম কোর্ট প্রশাসন এ-সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি জারি করে।

হাইকোর্ট বিভাগের রেজিস্ট্রার মো. গোলাম রব্বানী স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘মাননীয় প্রধান বিচারপতি দেশের আটটি বিভাগের প্রত্যেক বিভাগের জন্য হাইকোর্ট বিভাগের একজন করে মাননীয় বিচারপতি মহোদয়কে মনোনয়ন করেছেন।’

ঢাকা বিভাগের জন্য বিচারপতি মোস্তফা জামান ইসলাম, খুলনা বিভাগের জন্য বিচারপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, বরিশাল বিভাগের জন্য বিচারপতি জাফর আহমেদ, চট্টগ্রাম বিভাগের জন্য বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লা, সিলেট বিভাগের জন্য বিচারপতি এস এম কুদ্দুস জামান, রংপুর বিভাগের জন্য বিচারপতি শাহেদ নূরউদ্দিন, ময়মনসিংহ বিভাগের জন্য বিচারপতি মো. জাকির হোসেন ও রাজশাহী বিভাগের জন্য বিচারপতি মো. আখতারুজ্জামানকে মনোয়ন করা হয়েছে।

আট বিভাগের জন্য মনিটরিং কমিটিকে সাচিবিক সহায়তা করতে আট কর্মকর্তাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
সিরাজগঞ্জে দুস্থদের মাঝে সেনাপ্রধানের শীতবস্ত্র বিতরণ
খুরুশকুল পরিদর্শনে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে ভারত ও রুশ প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে মেক্সিকো সেনাবাহিনীর কমান্ডারের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে কানাডার হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

শেয়ার করুন

রাতের ভোট মৌখিক অভিযোগ, কেউ তো আদালতে যায়নি: সিইসি

রাতের ভোট মৌখিক অভিযোগ, কেউ তো আদালতে যায়নি: সিইসি

নির্বাচন কমিশনের কাজ করার সাংবাদিকদের সংগঠন আরএফইডি আয়োজিত অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সিইসি নূরুল হুদা। ছবি: নিউজবাংলা

সিইসি বলেন, ‘শতভাগ ভোট পড়া অবশ্যই অস্বাভাবিক। তবে আমার সীমাবদ্ধতা হলো, গেজেট প্রকাশ হয়ে যাওয়ার পর নির্বাচন কমিশনের আর কিছুই করার থাকে না। এটা আইন, এ আইনের বাইরে তো আমি কিছু করতে পারব না।’

একাদশ সংসদ নির্বাচনে ‘রাতের ভোটের’ যে কথা শোনা যায়, তা কেবলই একটা মৌখিক অভিযোগ বলে দাবি করেছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা।

বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশনের কাজ করার সাংবাদিকদের সংগঠন আরএফইডি আয়োজিত ‘আরএফইডি-টক’ অুনষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেয়ার সময় এ কথা বলেন।

নূরুল হুদা বলেন, ‘ভোটের দিন বা আগে-পরে নির্বাচন কমিশনে কেউ লিখিত কোনো অভিযোগ করেননি। এমনকি নির্বাচনের পরও সংক্ষুব্ধ প্রার্থীর আদালতে যাওয়ার সুযোগ ছিল। তবু কেউ আদালতের শরণাপন্ন হননি। এ থেকে বোঝা যায়, এটি কেবল একটি অভিযোগ, এর কোনো সত্যতা নেই।’

২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বর একাদশ সংসদ নির্বাচন নিয়ে অভিযোগ তোলে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্ট। সে নির্বাচনে অংশ নেয় সবগুলো রাজনৈতিক দল।

৩০০ সংসদীয় আসনের মধ্যে সে নির্বাচনে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট পায় ২৬৫ আসন, ২২টি আসন পায় জাতীয় পার্টি। বিএনপি নেতৃত্বাধীন ঐক্যফ্রন্ট পায় আটটি আসন।

আগের রাতেই আওয়ামী লীগের প্রার্থীরা কেন্দ্র দখল করে সব ব্যালটে সিল মেরে রাখে বলে অভিযোগ তোলে বিএনপি। অবশ্য ইসি তখন থেকেই সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন হয়েছে বলে দাবি করে এসেছে।

তখন থেকে আওয়ামী লীগ ৩০ ডিসেম্বরকে গণতন্ত্রের বিজয় দিবস হিসেবে পালন করে আসছে।

সিইসি নূরুল হুদা বলেন, ‘‘দিনের ভোট রাতে হয়’ অনেকভাবেই এ কথাটি বলা হয়। নির্বাচনের সময় যদি কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটে বা কেন্দ্র বন্ধ করে দেয়ার মতো কোনো ঘটনা ঘটে, এ তথ্য-উপাত্ত আমাদের কাছে আসতে হয়। সে তথ্য-উপাত্ত আমরা পাই গণমাধ্যম এবং রিটার্নিং অফিসারদের কাছ থেকে।

‘ওই নির্বাচনের দিনও আমরা সারা দিন বিভিন্ন গণমাধ্যমের সামনে বসা ছিলাম, তথ্য-উপাত্ত পর্যবেক্ষণ করছিলাম। আমরা দেখেছি নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে, কোথাও কোনো অসুবিধা হয়নি। কিছু এলাকায় নির্বাচন নিয়ে সমস্যা হয়েছিল, সেগুলো আমরা বন্ধ করেছি। একটা আসনের পুরো নির্বাচন বন্ধ ছিল, পরে সেটা উপনির্বাচন করতে হয়েছে।’

সিইসি বলেন, ‘ইসি চলে আইনের মাধ্যমে, যখন আমাদের কানের কাছে কোনো অভিযোগ আসে, তখন সেটার আমরা তদন্ত করি, সে হিসেবে পদক্ষেপ নিই। কোনো প্রিসাইডিং অফিসার যদি আমাদের কাছের তাৎক্ষণিক জানায় সমস্যা হচ্ছে বা আমরা যদি কোথাও থেকে খবর পাই যে অনিয়ম হচ্ছে, তাহলে আমরাও নির্বাচন বন্ধ করতে পারি। কিন্তু এ রকম কোনো অভিযোগ আমরা নির্বাচনের সময় পাইনি।’

তিনি বলেন, ‘আইন অনুযায়ী কোনো নির্বাচনের ফল যখন রিটার্নিং অফিসার আমাদের কাছে জমা দেন, তখন আমরা সেটার গেজেট প্রকাশ করি। সেটা না মানলে সংক্ষুব্ধ প্রার্থী আমাদের কাছে লিখিত অভিযোগ দেবেন।

‘এ ছাড়া গেজেট প্রকাশের ৩০ দিনের মধ্যেই সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি আদালতের দ্বারস্থ হতে পারেন। এর বাইরে তখন আর নির্বাচন কমিশনের কিছুই করার থাকে না। কিন্তু একাদশ সংসদ নির্বাচনে একজন ব্যক্তিও নির্বাচন কমিশনে কিংবা আদালতে এ বিষয়ে অভিযোগ করেননি, কোনো প্রতিকার চাননি। তাই থিউরিটিক্যাল আমাদের বিশ্বাস করতে হয়, ওই নির্বাচনে কারও কোনো অভিযোগ ছিল না। অভিযোগের কোনো ভিত্তি পাওয়া যায় না।’

নূরুল হুদা বলেন, ‘আমি তো দেখিনি, আপনি তো দেখেননি, কেউ দেখেছে, রাতে হয়েছে, কেউ প্রমাণ দিয়েছে? কেউ অভিযোগ করেনি, তাই এই অভিযোগের সত্যতা নেই।’

নূরুল হুদা বলেন, ‘যদি কেউ অভিযোগ করত, আদালত যদি নির্দেশ দিত, তদন্ত হতো, হয়তো কিছু বেরিয়ে আসত, বেরিয়ে এলে নির্বাচন বন্ধ হয়ে যেত। হয়তো সারা দেশে নির্বাচন বন্ধ হয়ে যেত বা কিছু এলাকায় নির্বাচন বন্ধ হতো। এটা কেন তখন কোনো রাজনৈতিক দল অভিযোগ করেনি, পদক্ষেপ নেয়নি তারাই ভালো জানে। ইসি আইনানুগভাবে যা, যতটুকু করার দরকার ততটুকুই করেছে।’

নির্বাচনের ছয় মাস পর এসে যখন ইসি কেন্দ্রভিত্তিক ফলাফল ঘোষণা করল, তখন দেখা গেল কয়েক কেন্দ্রে ৯৫ থেকে ১০০ শতাংশ পর্যন্ত ভোট পড়েছে। ৮০ শতাংশেরও বেশি ভোট পড়েছে প্রায় ১৫ হাজারের বেশি কেন্দ্রে।

সে সময় কেন বিষয়টি ইসি খতিয়ে দেখেনি এমন প্রশ্নে সিইসি বলেন, ‘শতভাগ ভোট পড়া অবশ্যই অস্বাভাবিক। তবে আমার সীমাবদ্ধতা হলো, গেজেট প্রকাশ হয়ে যাওয়ার পর নির্বাচন কমিশনের আর কিছুই করার থাকে না। এটা আইন, এ আইনের বাইরে তো আমি কিছু করতে পারব না।’

আরও পড়ুন:
সিরাজগঞ্জে দুস্থদের মাঝে সেনাপ্রধানের শীতবস্ত্র বিতরণ
খুরুশকুল পরিদর্শনে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে ভারত ও রুশ প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে মেক্সিকো সেনাবাহিনীর কমান্ডারের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে কানাডার হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

শেয়ার করুন

সেরে ওঠার এক বছর পরও শরীরে মিলছে করোনার উপসর্গ

সেরে ওঠার এক বছর পরও শরীরে মিলছে করোনার উপসর্গ

আইইডিসিআরের গবেষণায় বলা হয়, সেরে ওঠার এক বছর পর ৪৫ শতাংশ মানুষের শরীরে কোভিড-পরবর্তী উপসর্গ দেখা গেছে। ফাইল ছবি

গবেষণায় বলা হয়, কোভিড-১৯ রোগীদের সুস্থ হওয়ার তিন মাস পর ৭৮ শতাংশের শরীরে, ছয় মাস পর ৭০ শতাংশের, নয় মাস পর ৬৮ শতাংশের ও এক বছর পর ৪৫ শতাংশ মানুষের শরীরে কোভিড-পরবর্তী উপসর্গ দেখা গেছে।

কোভিড-১৯ থেকে সুস্থ হওয়ার এক বছর পরও এ রোগের উপসর্গ পাওয়া যাচ্ছে আক্রান্তদের শরীরে। সেরে ওঠার এক বছর পর ৪৫ শতাংশ মানুষের শরীরে কোভিড-পরবর্তী উপসর্গ দেখা গেছে।

সম্প্রতি প্রকাশিত সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠানের (আইইডিসিআর) একটি গবেষণায় এমন প্রমাণ মিলেছে।

সংস্থাটির ওয়েবসাইটে বৃহস্পতিবার দুপুরে এ গবেষণাটি প্রকাশ করা হয়।

গবেষণায় বলা হয়, উপসর্গসহ আক্রান্ত কোভিড-১৯ রোগীদের সুস্থ হওয়ার তিন মাস পর ৭৮ শতাংশের শরীরে, ছয় মাস পর ৭০ শতাংশের, নয় মাস পর ৬৮ শতাংশের ও এক বছর পর ৪৫ শতাংশ মানুষের শরীরে কোভিড-পরবর্তী উপসর্গ দেখা গেছে। উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিসসহ অসংক্রামক রোগে আক্রান্তদের শরীরে কোভিড-পরবর্তী উপসর্গ প্রকাশ পাওয়ার আশঙ্কা দু-তিন গুণ বেশি।

আইইডিসিআরের গবেষণা বলছে- নিয়মিত ওষুধ সেবনকারীদের কোভিড-১৯ পরবর্তী উপসর্গে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা, যারা নিয়মিত ওষুধ সেবন করেন না তাদের তুলনায় প্রায় ৯ ভাগ পর্যন্ত কমে যায়।

একইভাবে, ডায়াবেটিস রোগীদের মধ্যে নিয়মিত ওষুধ সেবনকারীদের কোভিড-১৯ পরবর্তী উপসর্গে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা যারা নিয়মিত ওষুধ সেবন করেন না তাদের তুলনায় প্রায় ৭ ভাগ পর্যন্ত কমে যায়।

এতে বলা হয়, উচ্চ রক্তচাপ ও ডায়াবেটিস রোগীদের কোভিড-১৯ পরবর্তী উপসর্গে আক্রান্ত হওয়ার আশঙ্কা কমাতে রেজিস্ট্রার্ড চিকিৎসকের প্রেসক্রিপশন মেনে নিয়মিত ওষুধ সেবন করা জরুরী। চলমান গবেষণার মাধ্যমে ভবিষ্যতে কোভিড-১৯ পরবর্তী উপসর্গের ব্যাপারে আরও হালনাগাদ তথ্য পাওয়া যাবে।

কোভিড-১৯ বিশ্বমারি প্রতিরোধে আইইডিসিআর সবাইকে প্রয়োজনীয় স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলার পাশাপাশি পূর্ণ ডোজ কোভিড-১৯ টিকা গ্রহণের জন্য আহ্বান জানায়।

বাংলাদেশে কোভিড-১৯ বিশ্ব মহামারির শুরু থেকে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনায় আইইডিসিআর বিভিন্ন রোগতাত্ত্বিক বিশ্লেষণ, মহামারি তদন্ত ও গবেষণা পরিচালনা করে আসছে।

আরও পড়ুন:
সিরাজগঞ্জে দুস্থদের মাঝে সেনাপ্রধানের শীতবস্ত্র বিতরণ
খুরুশকুল পরিদর্শনে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে ভারত ও রুশ প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে মেক্সিকো সেনাবাহিনীর কমান্ডারের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে কানাডার হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

শেয়ার করুন

রাজনীতিকের বক্তব্যের চেয়েও শক্তিশালী কবিতা: প্রধানমন্ত্রী

রাজনীতিকের বক্তব্যের চেয়েও শক্তিশালী কবিতা: প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর আমি বলব যে, এ দেশের আন্দোলনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি অবদান রয়েছে এ দেশের কবিদের এবং আবৃত্তিকারকদের। আমি কৃতজ্ঞতা জানাই তাদের সবার প্রতি।’

একজন রাজনীতিবিদের বক্তব্যের চেয়ে কবিতা আরও বেশি শক্তিশালী, মানুষকে আরও বেশি উদ্বেলিত করে বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমিতে বৃহস্পতিবার সকালে ‘বঙ্গবন্ধু জাতীয় আবৃত্তি উৎসব ২০২০-২২’-এর উদ্বোধন এবং ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব জাতীয় আবৃত্তি পদক ২০২০-২২’ প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে সংযুক্ত ছিলেন সরকারপ্রধান।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘কবিতার মধ্য দিয়ে অনেক না বলা কথা বলা যায়। রাজনীতিবিদরা অনেক কথা বা বক্তব্য দেন, কিন্তু একটি কবিতার মধ্য দিয়ে মানুষ অনেক বেশি উদ্বুদ্ধ হয়। আমি কথা বলে একটি মানুষকে যতটুকু উদ্বুদ্ধ করতে পারি, তার চেয়ে অনেক বেশি উদ্বুদ্ধ হয় মানুষ একটা কবিতা, গান, নাটক বা সংস্কৃতি চর্চার মধ্য দিয়ে। যার মাধ্যমে মানুষের হৃদয়ের কাছে পৌঁছনো যায়।’

গ্রাম-বাংলার চিরায়ত ‘কবিগান’-এর আসরের প্রসঙ্গ টেনে বঙ্গবন্ধুকন্যা বলেন, ‘আমাদের দেশে আগে কবিয়ালদের লড়াই হতো। আসলে বাঙালিরা সহজাতভাবেই কবি, এটা হলো বাস্তবতা।’

কবিতা, গান, নাটক তথা সংস্কৃতি চর্চার মধ্য দিয়ে যেভাবে প্রতিবাদের ভাষা বেরিয়ে আসে এবং মানুষ উদ্বুদ্ধ হয়, তা আর কোনো কিছুতে হয় না বলেও মত তার।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘জাতির পিতা হত্যাকাণ্ডের পর যখন রাজনীতি নিষিদ্ধ ছিল, তখনও প্রতিবাদ করেছেন কবি ও আবৃত্তিকাররা।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘নাট্যকার দীন বন্ধু মিত্রের নীল দর্পণ নাটকের মধ্য দিয়ে ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন যেভাবে এগিয়ে গিয়েছিল- একটি কবিতার শক্তি যে কত বেশি সেটা তো আমরা নিজেরাই জানি। ’৭৫-এর ১৫ আগস্টের পর যখন কোনো রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড করা যাচ্ছিল না, তখন আমাদের কবিতার মধ্য দিয়েই প্রতিবাদের ভাষা বেরিয়ে আসে এবং মানুষ সেখানে উদ্বুদ্ধ হয়।’

সরকারপ্রধান বলেন, ‘আমাদের ওপর কতবার আঘাত এসেছে; কিন্তু বাঙালি বসে থাকেনি, প্রতিবারই প্রতিবাদ করেছে। কারণ আমাদের সাহিত্য চর্চা তো বৃথাই হয়ে যেত। এক-একজন কবি, শিল্পী, সাহিত্যিক, আবৃত্তিকার আমাদের যা কিছু দিয়ে গেছেন এগুলো আমাদের সম্পদ।’

বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যার পর প্রতিবাদে যারা এগিয়ে এসেছেন, তাদের মধ্যে কবিদের অবদানকে গুরুত্বপূর্ণ মনে করেন বঙ্গবন্ধুকন্যা।

তিনি বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর আমি বলব যে, এ দেশের আন্দোলনের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি অবদান রয়েছে এ দেশের কবিদের এবং আবৃত্তিকারকদের। আমি কৃতজ্ঞতা জানাই তাদের সবার প্রতি।’

কারও নাম উল্লেখ না করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘সে সময় অনেকেই যে যেভাবে পেরেছেন, লিখেছেন, নাটক করেছেন, সাহিত্য রচনা করেছেন, বই ছাপিয়েছেন, প্রতিবাদ করে গ্রেপ্তারও হতে হয়েছে কাউকে কাউকে, কিন্তু থেমে থাকেননি কেউ।’

বাংলাদেশ আবৃত্তি সমন্বয় পরিষদ আয়োজিত পাঁচ দিনের এই আবৃত্তি উৎসবের উদ্বোধনী দিনে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব জাতীয় আবৃত্তি পদক ২০২০-২২’ দেয়া হয়। বিজয়ীদের হাতে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে পদক তুলে দেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ও শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

আরও পড়ুন:
সিরাজগঞ্জে দুস্থদের মাঝে সেনাপ্রধানের শীতবস্ত্র বিতরণ
খুরুশকুল পরিদর্শনে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে ভারত ও রুশ প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে মেক্সিকো সেনাবাহিনীর কমান্ডারের সাক্ষাৎ
সেনাপ্রধানের সঙ্গে কানাডার হাইকমিশনারের সাক্ষাৎ

শেয়ার করুন