‘পৃথিবীতে শান্তি নেমে আসুক’

player
‘পৃথিবীতে শান্তি নেমে আসুক’

বড়দিন উপলক্ষে উৎসবের আমেজে সেজেছে গির্জাগুলো। ছবি: সাইফুল ইসলাম/নিউজবাংলা

তেজগাঁওয়ে হলি রোজারি চার্চের জপমালা রাণী গির্জায় প্রার্থনা শেষে আর্চবিশপ বিজয় নিসফরাস ডি’ক্রুজ বলেন, ‘যীশুখ্রিষ্ট এ জগতে যখন ছিলেন এবং এখনও তার মাধ্যমে আমরা সুস্থতা লাভ করি। মুক্তি ও জীবন পাই। আমরা যেন করোনা থেকে মুক্তি লাভ করতে পারি। পৃথিবীতে শান্তি নেমে আসুক।’

যথাযথ ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে সারা বিশ্বের মতো দেশেও পালিত হচ্ছে খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব বড়দিন। মানবজাতি, দেশ ও বিশ্বের শাস্তি-সমৃদ্ধি কামনায় গির্জাগুলোতে চলছে বিশেষ প্রার্থনা।

বড়দিন উপলক্ষে শনিবার রাজধানী তেজগাঁওয়ে হলি রোজারি চার্চের জপমালা রাণী গির্জায় সকাল ৭টায় শুরু হয় বিশেষ প্রার্থনা। প্রথম দফা শেষে দ্বিতীয় ও শেষ প্রার্থনা শুরু হয় ৯টায়।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রার্থনায় যোগ দেন শত শত খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বী। তাদের সবারই চাওয়া ছিল দেশ ও মানবজাতির শান্তি ও সমৃদ্ধি। ছিল করোনা মহামারি থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার প্রার্থনাও।

প্রার্থনা শেষে আর্চবিশপ বিজয় নিসফরাস ডি’ক্রুজ বলেন, ‘এ বছর আমরা জাতির পিতা জন্মশত বার্ষিকী ও বিজয়ের সুবর্ণজয়ন্তী পালন করছি। আমরা আমাদের সবচেয়ে বড় পার্বণের দিনে দেশ ও জাতির কল্যাণের জন্য প্রার্থনা করছি।

তিনি আরও বলেন, ‘যীশুখ্রিষ্ট এ জগতে যখন ছিলেন এবং এখনও তার মাধ্যমে আমরা সুস্থতা লাভ করি। মুক্তি ও জীবন পাই। আমরা যেন করোনা থেকে মুক্তি লাভ করতে পারি। পৃথিবীতে শান্তি নেমে আসুক।’

ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, স্রষ্টার মহিমা প্রচার এবং মানবজাতিকে সত্য ও ন্যায়ের পথে পরিচালিত করতে ২৫ ডিসেম্বর বেথেলহেমে জন্মেছিলেন যীশুখ্রিষ্ট। দিনটি ধর্মাবলম্বীদের জন্য সবচেয়ে বড় উৎসব।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশের খ্রিষ্ট ধর্মাবলম্বীরা যথাযথ ধর্মীয় আচার, আনন্দ-উৎসব ও প্রার্থনার মধ্য দিয়ে দিনটি উদযাপন করছেন। করোনা সংক্রমণ কিছুটা কমে গেলেও সীমিত আকারে করা হয়েছে আয়োজন।

শুক্রবার রাত থেকেই আনন্দের সময়টি উদযাপন শুরু হয়েছে বিশেষ প্রার্থনার মধ্য দিয়ে। রমনা চার্চে রাত ৮টা ৩০ মিনিটে হয় বিশেষ প্রার্থনা।

বড়দিনের মাহাত্ম তুলে ধরে ফাদার লিটন ইউবার্ট গমেজ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যীশুখ্রিষ্ট পৃথিবীতে এসেছেন মানুষের মর্যাদার জন্য। আমরা বিশ্বাস করি পিতা ঈশ্বর আমাদের সৃষ্টি করেছেন, কিন্তু আমরা পাপ করার মধ্য দিয়ে মর্যাদা নষ্ট করেছি। যীশুখ্রিষ্ট এই জগতে এসে তিনি আমাদেরকে ভালোবেসেছেন এবং ক্ষমা দিয়ে মানুষের মর্যাদা অক্ষুন্ন রেখেছেন। এই মর্যাদা যেন সবাইকে দিতে পারি সেটাই বড়দিনের বড় বিষয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘আনন্দের দিনে বলতে চাই আমরা সবাই যেন একসঙ্গে বসবাস করতে পারি। বাংলাদেশে যেন শান্তি-সম্প্রীতি অক্ষুন্ন থাকে। কিছু দিন আগে জাতির পিতা শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করেছি, সেই সর্বজনীন জাতীয়তাবোধ নিয়ে আমরা সামনের দিকে এগিয়ে যেতে চাই।’

আরও পড়ুন:
শান্তি প্রার্থনায় বড়দিন উদযাপন শুরু
কেক কেটে বড়দিন উদযাপন বিএনপির
নাটোরে স্তুতি, কীর্তনে যীশুকে স্মরণ
নওগাঁয় সীমিত পরিসরে বড়দিন উদযাপন
বড়দিনে উপহার পেল পাহাড়ের শিশুরা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ভাড়া নিয়ে তর্ক, পিটিয়ে রাস্তায় ফেলার পর যাত্রীর মৃত্যু

ভাড়া নিয়ে তর্ক, পিটিয়ে রাস্তায় ফেলার পর যাত্রীর মৃত্যু

গ্রিনবাংলা পরিবহনের বাসে ভাড়া নিয়ে তর্কাতর্কি হয়। বাসটি জব্দ করার পাশাপাশি চালক ও তার সহকারীকে থানায় নিয়েছে পুলিশ। ছবি: সংগৃহীত

বাসে ইরফানের সঙ্গে ছিলেন আব্দুল কাদের। তিনি জানান, সকালে ডেমরা থেকে নবাবপুরের কর্মস্থলে যেতে গ্রিনবাংলা পরিবহনে উঠেন তারা। টিকাটুলির জয়কালী মন্দিরের সামনে আসার পর ভাড়া নিয়ে ইরফানের সঙ্গে তর্ক-বিতর্ক হয় ভাড়া তুলতে থাকা সহকারীর। এক পর্যায়ে হাতাহাতি শুরু হলে ইরফানকে কিল, ঘুষি দিয়ে ধাক্কা দিয়ে বাস থেকে নিচে ফেলে দেয়া হয়।

রাজধানীতে ভাড়া নিয়ে তর্কাতর্কির পর এক যাত্রীকে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে ধেয়ার পর তার মৃত্যুর অভিযোগ পাওয়া গেছে। তার নাম ইরফান আহমেদ।

এই ঘটনায় সন্দেহভাজনকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয়রা।

পুলিশ বাসটি জব্দ করার পাশাপাশি চালক ও তার সহকারীকেও থানায় নিয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে ওয়ারীর টিকাটুলির জয়কালী মন্দিরের সামনে সেই যাত্রীকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে দেয়ার আগে কিল, ঘুষিও দেয়া হয় বলে জানিয়েছেন নিহতের সঙ্গী।

আহত ইরফানকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে এলে দুপুরের দিকে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

বাসে ইরফানের সঙ্গে ছিলেন আব্দুল কাদের। তিনি জানান, সকালে ডেমরা থেকে নবাবপুরের কর্মস্থলে যেতে গ্রিনবাংলা পরিবহনে উঠেন তারা। টিকাটুলির জয়কালী মন্দিরের সামনে আসার পর ভাড়া নিয়ে ইরফানের সঙ্গে তর্ক-বিতর্ক হয় ভাড়া তুলতে থাকা সহকারীর।

এক পর্যায়ে হাতাহাতি শুরু হলে ইরফানকে কিল, ঘুষি দিয়ে ধাক্কা দিয়ে বাস থেকে নিচে ফেলে দেয়া হয় বলে অভিযোগ করেন কাদের। বলেন, ‘গুরুতর অবস্থায় টিকাটুলি সালাউদ্দিন হাসপাতাল নিয়ে যাই। সেখানে অবস্থার অবনতি হলে তাকে ঢাকা মেডিক্যালে নিয়ে আসার পর চিকিৎসক তাকে মৃত বলে জানান।’

এই ঘটনায় বাসে চালকের সহকারী মোজাম্মেল হোসেনকে স্থানীয় লোকজন আটক করে পুলিশে দেয় বলেও জানান কাদের।

নিহতের ভাই এনাম আহমেদ জানান, ইরফান নবাবপুর এলাকায় একটি ইলেকট্রিক দোকানে চাকরি করেন। তাদের বাড়ি ডেমরার দেউল্লা বামৈল এলাকায়।

ইরফান এক কন্যা সন্তানের জনক ছিলেন।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ (পরিদর্শক) বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘টিকাটুলি এলাকায় বাস থেকে ফেলে দেয়া এক ব্যক্তিকে আহত অবস্থায় ঢাকা মেডিক্যাল নিয়ে আসলে চিকিৎসক মৃত বলে জানান। এই ঘটনায় হেলপারকে ওয়ারী পুলিশ আটক করেছে।’

ওয়ারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কবির হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কন্ডাক্টরের সঙ্গে ঝামেলাটা হয়েছিল। আমরা জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সেই বাসের ড্রাইভার ও হেলপারকে থানায় এনেছি। বাসটাও জব্দ করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
শান্তি প্রার্থনায় বড়দিন উদযাপন শুরু
কেক কেটে বড়দিন উদযাপন বিএনপির
নাটোরে স্তুতি, কীর্তনে যীশুকে স্মরণ
নওগাঁয় সীমিত পরিসরে বড়দিন উদযাপন
বড়দিনে উপহার পেল পাহাড়ের শিশুরা

শেয়ার করুন

রাস্তায় সাইড না দেয়া নিয়ে বিরোধে বাইকযাত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

রাস্তায় সাইড না দেয়া নিয়ে বিরোধে বাইকযাত্রীকে পিটিয়ে হত্যা

মোটরসাইকেলকে সাইড না দেয়ায় একটি পিকনিকের বাসের গতিরোধ করেন নিহত সুফিয়ান ও তার বন্ধু। সেখানে ঝগড়ার পর বাসটি ছেড়ে যাওয়ার পর যাত্রীরা আবার গালাগাল করে। পরে সুফিয়ান চিটাগাং রোড ফর অ্যাকটিভ হাসপাতালের সামনে মোটরসাইকেল দিয়ে বাসটি আবার আটকান। সেখানে বাসের চালক, সহকারী ও পিকনিক যাত্রীর সঙ্গে ঝগড়া হয়। পরে সুফিয়ান ও তার বন্ধুকে বেধড়ক পেটানো হয়।

নারায়ণগঞ্জে মোটরসাইকেলকে বাসের সাইড না দেয়া নিয়ে পিকনিক যাত্রীদের সঙ্গে তর্কাতর্কির জেরে একজনকে পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ পাওয়া গেছে। নিহতের নাম মোহাম্মদ সুফিয়ান।

বুধবার রাত ১১টার দিকে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে এলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের মামাতো ভাই আব্দুল্লাহ জানান, গত রাতে পল্টনে তার এক আত্মীয়ের দোকান থেকে বন্ধু অনিককে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে সিদ্ধিরগঞ্জ যাচ্ছিলেন সুফিয়ান। শনির আখড়া এলাকায় সাইড না দেয়ায় একটি পিকনিকের বাসের গতিরোধ করেন তারা। সে সময় বাসচালক ও তার সহযোগীর সঙ্গে সুফিয়ানের তর্কবিতর্ক হয়।

এরপর বাসটি ছেড়ে যায়। সে সময় বাসে থাকা পিকনিকের লোকজন তাদের আবার গালাগাল করলে সুফিয়ান চিটাগাং রোড ফর অ্যাকটিভ হাসপাতালের সামনে মোটরসাইকেল দিয়ে বাসটি আবার আটকান। সেখানে বাসের চালক, সহকারী ও পিকনিক যাত্রীর সঙ্গে ঝগড়া হয়।

পরে বাসের স্টাফ ও পিকনিকের লোকজন সুফিয়ান ও অনিককে বেধড়ক মারধর করে। গুরুতর আহত অবস্থায় সুফিয়ানকে ঢাকা মেডিক্যালে নিয়ে আসা হয়।

এ ঘটনায় গাড়িটি জব্দের পাশাপাশি চালক ও সহকারীকে আটক করেছে পুলিশ।

সুফিয়ানের বাড়ি নারায়ণগঞ্জের সিদ্ধিরগঞ্জ উপজেলার সাইনবোর্ড পশ্চিমপাড়া পুকুরপাড় গ্রামে। তিনি ডেকোরেটর ব্যবসায়ী ছিলেন। দুই ভাই ও এক বোনের মধ্যে তিনি বড়। তার দেড় বছর বয়সী একটি ছেলে আছে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ (পরিদর্শক) বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘রাতে সিদ্ধিরগঞ্জ থেকে মারধরের শিকার হয়ে এক যুবককে হাসপাতালে নিয়ে আসার পর চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। ময়নাতদন্তের জন্য তার মরদেহ মেডিক্যাল মর্গে রাখা হয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানাকে জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
শান্তি প্রার্থনায় বড়দিন উদযাপন শুরু
কেক কেটে বড়দিন উদযাপন বিএনপির
নাটোরে স্তুতি, কীর্তনে যীশুকে স্মরণ
নওগাঁয় সীমিত পরিসরে বড়দিন উদযাপন
বড়দিনে উপহার পেল পাহাড়ের শিশুরা

শেয়ার করুন

ব্লগার নাজিম হত্যা: মেজর জিয়াসহ পাঁচজনের নামে পরোয়ানা

ব্লগার নাজিম হত্যা: মেজর জিয়াসহ পাঁচজনের নামে পরোয়ানা

চাকরিচ্যুত মেজর সৈয়দ জিয়াউল হক। ছবি: সংগৃহীত

ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক সোমবার পুলিশের দেয়া অভিযোগপত্র আমলে নিয়ে পরোয়ানা জারি করেন।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী ব্লগার নাজিমুদ্দিন সামাদ হত্যা মামলায় আনসার আল ইসলামের সামরিক শাখার প্রধান চাকরিচ্যুত মেজর সৈয়দ জিয়াউল হক জিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছে আদালত।

ঢাকার সন্ত্রাসবিরোধী বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মজিবুর রহমান সোমবার পুলিশের দেয়া অভিযোগপত্র আমলে নিয়ে এই পরোয়ানা জারি করেন।

বৃহস্পতিবার সংশ্লিষ্ট আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী গোলাম ছারোয়ার খান জাকির নিউজবাংলাকে বলেন, ‘১৭ জানুয়ারি আদালত ৯ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র গ্রহণ করে। পলাতক থাকায় মেজর জিয়াসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে আদালত। ২৩ ফেব্রুয়ারি গ্রেপ্তারসংক্রান্ত তামিল প্রতিবেদন দাখিলের তারিখ ধার্য করা হয়েছে।’

পরোয়ানা জারি হওয়া অপর চার আসামি হলেন- আকরাম হোসেন, মো. ওয়ালিউল্লাহ, সাব্বিরুল হক চৌধুরী ও জুনেদ আহাম্মেদ।

অপর চার আসামি রশিদুন নবী ভূইয়া, মোজাম্মেল হুসাইন, আরাফাত রহমান ও শেখ আব্দুল্লাহ কারাগারে রয়েছেন বলে আদালত সূত্রে জানা গেছে।

২০১৬ সালের ৬ এপ্রিল রাতে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস শেষে পুরান ঢাকার গেন্ডারিয়ায় মেসে ফেরার পথে লক্ষ্মীবাজারের একরামপুর মোড়ে খুন হন ব্লগার নাজিমুদ্দিন। এ ঘটনায় পরদিন সূত্রাপুর থানার এসআই নুরুল ইসলাম মামলা করেন। ২০২০ সালের ২০ আগস্ট বহিষ্কৃত মেজর সৈয়দ মো. জিয়াউল হক জিয়াসহ ৯ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম ইউনিট।

আরও পড়ুন:
শান্তি প্রার্থনায় বড়দিন উদযাপন শুরু
কেক কেটে বড়দিন উদযাপন বিএনপির
নাটোরে স্তুতি, কীর্তনে যীশুকে স্মরণ
নওগাঁয় সীমিত পরিসরে বড়দিন উদযাপন
বড়দিনে উপহার পেল পাহাড়ের শিশুরা

শেয়ার করুন

শাবিতে হামলা: জগন্নাথে ছাত্রদলের বিক্ষোভ

শাবিতে হামলা: জগন্নাথে ছাত্রদলের বিক্ষোভ

শাবি শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলার প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার বিক্ষোভ মিছিল করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল। ছবি: নিউজবাংলা

বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩ নম্বর গেট থেকে বৃহস্পতিবার দুপুরে মিছিল বের হয়। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল নেতা মেহেদী হাসান হিমেল মিছিলে নেতৃত্ব দেন। রায়সাহেব বাজারে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ছাত্রদল নেতারা।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শাবিপ্রবি) শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ-সমাবেশ করেছে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল।

বৃহস্পতিবার দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩ নম্বর গেট থেকে মিছিল বের হয়। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদল নেতা মেহেদী হাসান হিমেল মিছিলে নেতৃত্ব দেন। রায়সাহেব বাজারে গিয়ে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন ছাত্রদল নেতারা।

শাবি ক্যাম্পাসে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর ছাত্রলীগ ও পুলিশের যৌথ হামলার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন তারা।

মিছিল-সমাবেশে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ছাত্রদল নেতা সাইফুল হক তাজ, নাহিদ চৌধুরী, রফিকুল ইসলাম রফিক, নাছিম উদ্দিন ও ওয়াহিদুজ্জামান তুহিন।

আরও পড়ুন:
শান্তি প্রার্থনায় বড়দিন উদযাপন শুরু
কেক কেটে বড়দিন উদযাপন বিএনপির
নাটোরে স্তুতি, কীর্তনে যীশুকে স্মরণ
নওগাঁয় সীমিত পরিসরে বড়দিন উদযাপন
বড়দিনে উপহার পেল পাহাড়ের শিশুরা

শেয়ার করুন

যাবজ্জীবন দণ্ডের রায় পুনর্বিবেচনা চান এসআই হায়াতুল

যাবজ্জীবন দণ্ডের রায় পুনর্বিবেচনা চান এসআই হায়াতুল

বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্ট ভবন। ছবি: নিউজবাংলা

প্রায় দুই যুগ আগের আলোচিত এই মামলায় পুলিশের প্রয়াত এসি আকরামসহ ১৩ আসামি হাইকোর্টে খালাস পান। একমাত্র দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হলেন এসআই হায়াতুল ইসলাম ঠাকুর।

ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটির ছাত্র শাহীন রেজা রুবেল হত্যা মামলায় যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় পুনর্বিবেচনা চেয়ে আবেদন করেছেন পুলিশ থেকে বহিষ্কৃত উপপরিদর্শক (এসআই) হায়াতুল ইসলাম ঠাকুর।

রিভিউ আবেদনটি বৃহস্পতিবার বিচারক মো. নূরুজ্জামানের নেতৃত্বে বেঞ্চে উঠলে শুনানির জন্য ২৭ জানুয়ারি তারিখ নির্ধারণ করে দেয়া হয়।

রায় পুনর্বিবেচনার জন্য আসামিপক্ষে আবেদন করেছিলেন সিনিয়র আইনজীবী মুনসুরুল হক চৌধুরী।

প্রায় দুই যুগ আগের আলোচিত এই মামলায় পুলিশের প্রয়াত এসি আকরামসহ ১৩ আসামি হাইকোর্টে খালাস পান। একমাত্র দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হলেন এসআই হায়াতুল ইসলাম ঠাকুর।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ইনডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটির ছাত্র রুবেলকে ১৯৯৮ সালের ২৩ জুলাই ডিবির এসআই হায়াতুল ইসলাম ঠাকুরের নেতৃত্বে একটি দল আটক করে। পরে গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) হেফাজতে থাকা অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

এ ঘটনায় করা মামলার রায়ে বিচারিক আদালত ২০০২ সালের ১৭ জুন এসি আকরামসহ ১৩ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং মুকুলি বেগম নামের এক আসামিকে এক বছরের কারাদণ্ড দেন।

বিচারিক আদালতের এ রায়ের বিরুদ্ধে ২০০২ সালে হাইকোর্টে আপিল করেন আসামিপক্ষ।

আপিলের শুনানি শেষে হাইকোর্টের রায়ে এসি আকরাম, মুকুলি বেগমসহ ১৩ আসামিকে খালাস দেয়। আর আসামি হায়াতুল ইসলামের যাবজ্জীবন সাজা বহাল রাখা হয়।

হাইকোর্টের রায়ের পর ২০১১ সালের ৯ মে রাতে কারাগার থেকে মুক্তি পান এসি আকরাম।

খালাসপ্রাপ্ত অন্যরা হলেন আমিনুল ইসলাম, আমীর আহমেদ তারেক, নুরুল আলম, আবদুল করিম, নুরুজ্জামান, রাতুল পারভেজ, মীর ফারুক, মংশেওয়েন, আবুল কালাম আজাদ, কামরুল হাসান, জাকির হোসেন ও মুকুলি বেগম।

এরপর রাষ্ট্রপক্ষ এসি আকরামের খালাসের বিরুদ্ধে এবং হায়াতুল ঠাকুর তার যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে আপিল করেন। রাষ্ট্রপক্ষের লিভ টু আপিল মঞ্জুর করে ২০১৫ সালের ৩০ আগস্ট এসি আকরামকে সাত দিনের মধ্যে বিচারিক আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেয় আপিল বিভাগ।

আপিল শুনানি শেষে ২০১৭ সালের ২৮ মার্চ তৎকালীন ডিবির সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) মো. আকরাম হোসেনসহ ১৩ আসামির খালাসের রায় বহাল রাখে আপিল বিভাগ। এর মধ্যে গত বছরের ১৬ জুলাই এসি আকরামের মৃত্যু হয়েছে।

তবে আপিল খারিজ করে এসআই হায়াতুল ইসলাম ঠাকুরের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড বহাল রাখে সর্বোচ্চ আদালত। আপিল বিভাগের সেই রায়ের রিভিউ চেয়ে আবেদন করেছেন হায়াতুল ইসলাম।

আরও পড়ুন:
শান্তি প্রার্থনায় বড়দিন উদযাপন শুরু
কেক কেটে বড়দিন উদযাপন বিএনপির
নাটোরে স্তুতি, কীর্তনে যীশুকে স্মরণ
নওগাঁয় সীমিত পরিসরে বড়দিন উদযাপন
বড়দিনে উপহার পেল পাহাড়ের শিশুরা

শেয়ার করুন

ঢাকায় কানাডার নতুন হাইকমিশনার লিলি নিকোলস

ঢাকায় কানাডার নতুন হাইকমিশনার লিলি নিকোলস

বাংলাদেশে কানাডার নতুন হাইকমিশনার লিলি নিকোলস। ছবি: সংগৃহীত

বাংলাদেশে পৌঁছে নতুন হাইকমিশনার টুইটারে লিখেছেন, ‘ঢাকায় কানাডা মিশনে যোগ দিতে পেরে আমি খুশি। বাংলাদেশে আসার পর আমাকে এখানকার সুস্বাদু মিষ্টি দিয়ে স্বাগত জানানো হয়েছে।’

বাংলাদেশে কানাডার নতুন হাইকমিশনার হিসেবে ঢাকায় যোগ দিয়েছেন লিলি নিকোলস। তিনি সদ্যবিদায়ী হাইকমিশনার বেনোয়া প্রিফন্টেইনের স্থলাভিষিক্ত হলেন।

কানাডিয়ান হাইকমিশনের টুইটারে জানানো হয়েছে, লিলি নিকোলস বুধবার ঢাকায় পৌঁছান। তাকে ফুল ও মিষ্টিতে বরণ করে নেয়া হয়।

এ বিষয়ে টুইট করেছেন লিলিও। লিখেছেন, ‘ঢাকায় কানাডা মিশনে যোগ দিতে পেরে আমি খুশি। বাংলাদেশে আসার পর আমাকে এখানকার সুস্বাদু মিষ্টি দিয়ে স্বাগত জানানো হয়েছে।’

ঢাকায় আসার আগে কানাডার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পরিচালক (উন্নয়ন গবেষণা ও শিক্ষা) হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন লিলি। এর আগে পানামায় কানাডার হাইকমিশনার হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন তিনি।

বিদায়ী হাইকমিশনার বেনোয়া প্রিফন্টেইনের ঢাকা থেকে ভারতের বেঙ্গালুরুর কানাডার মিশনে কনসাল জেনারেল হিসেবে যোগ দেয়ার কথা রয়েছে।

আরও পড়ুন:
শান্তি প্রার্থনায় বড়দিন উদযাপন শুরু
কেক কেটে বড়দিন উদযাপন বিএনপির
নাটোরে স্তুতি, কীর্তনে যীশুকে স্মরণ
নওগাঁয় সীমিত পরিসরে বড়দিন উদযাপন
বড়দিনে উপহার পেল পাহাড়ের শিশুরা

শেয়ার করুন

‘লও ঠেলা’ গ্যাংয়ের ৯ জন আটক

‘লও ঠেলা’ গ্যাংয়ের ৯ জন আটক

র‍্যাব হেফাজতে ‘লও ঠেলা’র ৯ সদস্য। ছবি: সংগৃহীত

২০১৭ সালে ‘লও ঠেলা’ নামে গ্রুপ খোলেন বাবু। আগে তিনি ছিলেন ‘ভাইব্বা ল কিং’ নামে একটি কিশোর গ্রুপের সদস্য। এলাকায় দশের বাবু নামেই তিনি পরিচিত। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ৬টি মামলা আছে। তার গ্রুপ সদস্যদের বিরুদ্ধেও আছে একাধিক মামলা।

রাজধানীর মোহাম্মদপুরে সন্ত্রাসী গ্রুপ ‘লও ঠেলা’র ৯ সদস্যকে আটক করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

মোহাম্মদপুরের বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে বুধবার তাদের আটক করা হয়।

আটকদের মধ্যে কথিত ‘লও ঠেলা’ গ্রুপের প্রধান বাবু ওরফে দশের বাবু আছেন। অন্যরা হলেন- ফোরকান, পলাশ, সুমন, সাগর, রাজন, নাজিম, শাকিল ও মিলন।

তাদের কাছ থেকে ছুরি, চাপাতি, স্টিলের পাইপসহ ধারালো অস্ত্র জব্দ হয়েছে।

র‌্যাব-২ এর অধিনায়ক লে. কর্নেল আবু নাঈম মো. তালাত জানান, একদল সন্ত্রাসী গত ৩১ ডিসেম্বর রাতে মোহাম্মদপুরে নবীনগর হাউজিং এলাকায় দোকানপাট ও বাড়িঘরে ভাঙচুর চালায়। এই গ্রুপটি এলাকায় বেশ কয়েকটি ছিনতাইয়েও জড়িত। গত ১৬ রোববার সবশেষ ছিনতাই ও দোকানে লুটপাটের ঘটনা ঘটে।

এসব অভিযোগের পর সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে শনাক্ত করা হয় ‘লও ঠেলা’ গ্রুপের সদস্যদের। তাদের মধ্যে ৯ জনকে আটক করা হয়েছে। পলাতক অন্যদের আটকে অভিযান চলছে।

র‍্যাব জানায়, গ্রুপের প্রধান বাবু ওরফে দশের বাবু ২০০০ সালে মায়ের সঙ্গে নড়াইল থেকে ঢাকায় আসেন। তিনি গাড়ির হেলপার, হোটেলে পরিচ্ছন্ন কর্মীর চাকরিসহ বিভিন্ন কাজ করেছেন। একপর্যায়ে মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন। টাকার জন্য চুরি-ছিনতাই শুরু করেন তিনি।

এলাকায় প্রভাব বাড়াতে বাবু কিশোর বয়সী অনেককে দলে ভেড়ান। এরপর মোহাম্মদপুরসহ আশেপাশের এলাকায় ছিনতাই, চাঁদাবাজি, ডাকাতি ছাড়াও মাদক কারবার করতে থাকেন গ্রুপ সদস্যদের মাধ্যমে। এই গ্রুপের অনেকেই রিকশাচালক ও দোকান কর্মচারী। প্রায় প্রতি সন্ধ্যায় তারা এলাকায় অপরাধমূলক কাজের পাশাপাশি মহড়া দিত।

২০১৭ সালে ‘লও ঠেলা’ নামে গ্রুপ খোলেন বাবু। আগে তিনি ছিলেন ‘ভাইব্বা ল কিং’ নামে একটি কিশোর গ্রুপের সদস্য। এলাকায় দশের বাবু নামেই তিনি পরিচিত। তার বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় ৬টি মামলা আছে। তার গ্রুপ সদস্যদের বিরুদ্ধেও আছে একাধিক মামলা।

আরও পড়ুন:
শান্তি প্রার্থনায় বড়দিন উদযাপন শুরু
কেক কেটে বড়দিন উদযাপন বিএনপির
নাটোরে স্তুতি, কীর্তনে যীশুকে স্মরণ
নওগাঁয় সীমিত পরিসরে বড়দিন উদযাপন
বড়দিনে উপহার পেল পাহাড়ের শিশুরা

শেয়ার করুন