মৃত নানিকে দেখে ফেরার পথে আগুনে হারালেন মেয়েকে

player
মৃত নানিকে দেখে ফেরার পথে আগুনে হারালেন মেয়েকে

আগুনে দগ্ধ জিয়াসমিন ও তার ছেলেকে ঢাকা মেডিক্যালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটে ভর্তি করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা

জিয়াসমিনের খালু আবুল হোসেন বলেন, ‘জিয়াসমিন তার স্বামী-সন্তান নিয়ে কয়েক দিন আগে এসেছিল। কালকে (বৃহস্পতিবার) বাড়ি ফিরে যাচ্ছিল। ওরা লঞ্চের দোতলায় ছিল। সেখানেই সাত-আট বছরের মেয়ে মাহিনুর ও ১০ বছরের তামিম আগুনে পুড়ে যায়।’

নানির মৃত্যুর সংবাদে কেরানীগঞ্জের সুবাড্ডায় এসেছিলেন বরগুনার জিয়াসমিন। সঙ্গে ছিলেন স্বামী ও দুই সন্তান। স্বামী খলিল আগেই বরগুনায় চলে যান। গতকাল রাতে দুই ছেলেমেয়ে নিয়ে অভিযান-১০ লঞ্চে করে বাড়ি ফিরছিলেন জিয়াসমিন। ফেরার পথেই লঞ্চটি অগ্নিদুর্ঘটনার শিকার হয়। আগুনে দুই সন্তানসহ জিয়াসমিন নিজেও দগ্ধ হন।

দুই সন্তানকে নিয়ে ঢাকায় উন্নত চিকিৎসার জন্য আসার পথে মাওয়া ফেরিঘাটে মারা যায় তার ছোট মেয়ে মাহিনুর। মেয়ের বয়স সাত বছরের মতো।

শুক্রবার বেলা ৩টার দিকে শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের জরুরি বিভাগে এসে উপস্থিত হয় তাদের বহনকারী অ্যাম্বুলেন্স।

মা জিয়াসমিন ও ছেলে তামিমকে বার্ন ইউনিটের জরুরি বিভাগে ভর্তি করা হয়।

জিয়াসমিনের খালু আবুল হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জিয়াসমিন তার স্বামী-সন্তান নিয়ে কয়েক দিন আগে এসেছিল। কালকে (বৃহস্পতিবার) বাড়ি ফিরে যাচ্ছিল। ওরা লঞ্চের দোতলায় ছিল। সেখানেই সাত-আট বছরের মেয়ে মাহিনুর ও ১০ বছরের তামিম আগুনে পুড়ে যায়।’

তিনি জানান, জিয়াসমিন নিজেও আগুনে দগ্ধ হয়েছেন। তার হাত-পা ও মুখ পুড়ে গেছে।

দুই সন্তানসহ বরিশাল থেকে অ্যাম্বুলেন্সে করে আসার পথে মাওয়া ফেরিঘাটে জিয়াসমিনের ছোট মেয়ে মারা যায় বলে জানান আবুল হোসেন।

তিনি বলেন, ‘মাহিনুরকে কেরানীগঞ্জের সুবাড্ডা রেখে তার মা ও ভাইকে নিয়ে মেডিক্যালে আসা হয়েছে।’

বৃহস্পতিবার রাত ৩টার দিকে ঢাকা থেকে বরগুনা যাওয়ার পথে ঝালকাঠির পোনাবালিয়া ইউনিয়নের দেউরী এলাকায় এমভি অভিযান-১০ নামের লঞ্চে আগুন লাগে।

দীর্ঘ চেষ্টায় ফায়ার সার্ভিস আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। সবশেষ পাওয়া খবরে ৩৮ জনের মৃত্যুর কথা নিশ্চিত করেছে প্রশাসন। যার ৩৭ জনের লাশ উদ্ধার করা হয় লঞ্চ থেকে।

আরও পড়ুন:
অবশেষে শয্যা পেলেন দগ্ধ সবাই
সেই লঞ্চ থেকে দেড় শ যাত্রী উদ্ধারের দাবি কাউন্সিলরের
লঞ্চে আগুন: দগ্ধ-আহতদের রাষ্ট্রীয় খরচে চিকিৎসার দাবি
বরগুনার ১৯ যাত্রীকে হন্যে হয়ে খুঁজছেন স্বজনরা
‘পুড়ে যাওয়া লঞ্চের ফিটনেস ঠিক ছিল’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ডিসিরাই জানেন দুর্নীতি কোথায় হয়: দুদক চেয়ারম্যান

ডিসিরাই জানেন দুর্নীতি কোথায় হয়: দুদক চেয়ারম্যান

দুদক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ (ডায়াসে ডানে)। ফাইল ছবি

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘দুদকের অন্যতম একটি কাজ হলো সচেতনতা বৃদ্ধি; দুর্নীতি যেন না হয়। দুর্নীতি থেকে যেন মানুষ দূরে থাকে, এটাও কিন্তু দুদকের অন্যতম কাজ। এ জন্য আমরা ডিসিদের অনুরোধ জানিয়েছি। তারা আমাদের সবসময় সাহায্য করেন; আরও যেন সাহায্য করেন।’

দুর্নীতি রোধের পাশাপাশি এ বিষয়ে জনসচেতনতা বাড়াতে জেলা প্রশাসকদের (ডিসি) সহযোগিতা চেয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ।

রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার ডিসি সম্মেলনে অংশ নিয়ে তিনি এ সহযোগিতা চান।

দুদক চেয়ারম্যান বলেন, ‘দুদকের অন্যতম একটি কাজ হলো সচেতনতা বৃদ্ধি; দুর্নীতি যেন না হয়। দুর্নীতি থেকে যেন মানুষ দূরে থাকে, এটাও কিন্তু দুদকের অন্যতম কাজ। এ জন্য আমরা ডিসিদের অনুরোধ জানিয়েছি। তারা আমাদের সবসময় সাহায্য করেন; আরও যেন সাহায্য করেন।

‘একজন জেলা প্রশাসক জানেন তার অফিসে কোথায় কোথায় দুর্নীতির সুযোগ আছে। কোন অফিসে কোথায় কোথায় দুর্নীতির সুযোগ আছে, এটা কিন্তু জেলা প্রশাসকরা জানেন। ওই জায়গায় তারা যেন সচেতনতা বৃদ্ধির কাজ করেন।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের আরেকটি কাজ হলো গণশুনানি। আপনারা জানেন যে প্রযুক্তির উন্নয়নের সঙ্গে সঙ্গে দুর্নীতির ধরনও পরিবর্তন হয়ে যায়। কোথাও যদি গণশুনানি করা হয়, তাহলে দুর্নীতির নতুন ধরনগুলোও জানা যায়। করোনার কারণে এটি এখন সীমিত আছে।

‘আমরা ডিসিদের বলেছি তারাও যেন গণশুনানি করেন। আমরাও করব। কোথায় নতুন রূপে দুর্নীতি হয় এবং কীভাবে তা বন্ধ করা যায়, সে বিষয়ে তারা যেন সহযোগিতা করেন।’

দুর্নীতির তদন্তের সময় কমিয়ে আনতে উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলেও জানান দুদক চেয়ারম্যান।

তিনি বলেন, ‘আমাদের একটি সমস্যা হলো তদন্ত বা অনুসন্ধানে একটু সময় লেগে যায়। এটার কারণে হয়তো অনেকে অভিযোগ থাকলেও সমস্যা হয়। এটা আমাদের একটি সীমাবদ্ধতা। এটা আমরা অ্যাড্রেস করার চেষ্টা করছি। নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে যেন আমাদের তদন্তগুলো শেষ হয়, আমরা চেষ্টা করছি।

‘দুর্নীতি এমন একটি জিনিস, প্রমাণ পাওয়াটা খুব কঠিন। অকাট্য প্রমাণ ছাড়া তো আমরা এগোতে পারি না। কারণ এটি না হলে আদালত মামলা গ্রহণ করবে না। যিনি ঘুষ নেন ও যিনি দেন, তারা কেউই তো স্বীকার করে না। এটি কমিয়ে আনতে আমরা চেষ্টা করছি। আমাদের যারা অনুসন্ধান করে তাদেরকেও আমরা জবাবদিহিতার আওতায় আনার চেষ্টা করছি।’

দুদকের আইনজীবীরা মামলার শুনানিতে উপস্থিত থাকেন না এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘আমরা জেলার যারা বিজ্ঞ আইনজীবী আছেন, তাদেরকেই নিয়োগ করার চেষ্টা করি। দুদক আইনে আছে আমাদের একটি প্যানেল থাকে। অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি বা অ্যাসিস্ট্যান্ট ডিরেক্টরের বেতনে তো কোনো আইনজীবী আসতে রাজি হবেন না।

‘তারা যদি স্বাধীনভাবে আইন পেশায় থাকে, তাদের আয় অনেক বেশি থাকে। আমার এখানে যদি নিয়ে আসি, তাহলে পঞ্চম গ্রেডের বেতন যদি দেই, সে টাকায় ভালো আইনজীবী আসবে না। আইনজীবী নিয়োগের জন্য যারা প্রতিষ্ঠিত তাদেরই আমরা নিয়োগের চেষ্টা করি। মামলার সময় উপস্থিত থাকে না, এমন ঘটনা অনেক কম।’

আরও পড়ুন:
অবশেষে শয্যা পেলেন দগ্ধ সবাই
সেই লঞ্চ থেকে দেড় শ যাত্রী উদ্ধারের দাবি কাউন্সিলরের
লঞ্চে আগুন: দগ্ধ-আহতদের রাষ্ট্রীয় খরচে চিকিৎসার দাবি
বরগুনার ১৯ যাত্রীকে হন্যে হয়ে খুঁজছেন স্বজনরা
‘পুড়ে যাওয়া লঞ্চের ফিটনেস ঠিক ছিল’

শেয়ার করুন

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের ইঙ্গিত

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধনের ইঙ্গিত

আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ফাইল ছবি

আনিসুল হক বলেন, ‘ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট নিয়ে জাতিসংঘের হিউম্যান রাইটস অফিসের সঙ্গে দুবার আলোচনা করেছি। মানবাধিকার কমিশনকে অবহিত করা হয়েছে যে আমরা আলোচনার জন্য প্রস্তুত।’

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন হতে পারে। জাতিসংঘ মানবাধিকার কমিশনের সঙ্গে আলোচনার উল্লেখ করে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক এমন ধারণা দিয়েছেন।

রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে চলমান ডিসি সম্মেলনে বৃহস্পতিবার অংশ নিয়ে আইনমন্ত্রী একথা বলেন।

আনিসুল হক বলেন, ‘ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট নিয়ে জাতিসংঘের হিউম্যান রাইটস অফিসের সঙ্গে দুবার আলোচনা করেছি। একটি কমিটি করা হয়েছে। মানবাধিকার কমিশনকে অবহিত করা হয়েছে যে আমরা আলোচনার জন্য প্রস্তুত। তারা যেন দ্রুতই সে আলোচনার তারিখ জানায়। তাদের নির্ধারিত তারিখ অনুযায়ী আমরা আলোচনায় বসতে রাজি আছি।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন ইস্যুতে আলোচনার জন্য লেজিসলেটিভ বিভাগের সচিবের নেতৃত্বে আইন ও বিচার বিভাগ, আইসিটি, স্বরাষ্ট্র এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধিদের নিয়ে ছয় সদস্যের কমিটি করা হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে- ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করার সঙ্গে সঙ্গে এটা যেন মামলা হিসেবে গ্রহণ করা না হয়। আইসিটি অ্যাক্ট অনুযায়ী যেন সেলে পাঠানো হয়।

‘সংবাদ মাধ্যমের কর্মীদের যেন তাৎক্ষণিক গ্রেপ্তার করা না হয়, সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। আর এমন নির্দেশনার পর এই আইনে সাংবাদিকদের গ্রেপ্তার অনেকাংশে কমে গেছে।’

কমিটির কাজ সম্পর্কে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, ‘এই আইন প্রধানত সাইবার অপরাধ নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশ্যে করা হয়েছে। বাক-স্বাধীনতা বা সংবাদ মাধ্যমের স্বাধীনতা হরণ করার জন্য করা হয়নি। সেটা যদি করা হতো এটা আইন হিসেবেই গণ্য হতো না।

‘কারণ সংবিধানে মৌলিক অধিকার হিসেবে বাক-স্বাধীনতা এবং গণমাধ্যমের স্বাধীনতাকে রাখা হয়েছে। আমরা একটু আগে এমন আইন করেছি। তবে ইতোমধ্যে অনেক দেশেই করা হয়েছে এবং অনেক দেশ এই আইন করা আবশ্যক মনে করছে।’

আনিসুল হক বলেন, ‘এই আইন যখন বাস্তবায়ন করা হয় সেখানে কিছু মিসইউজ ও কিছু অ্যাবিউস হয়েছে। এগুলো যাতে না হয় সে জন্য জাতিসংঘের হিউম্যান রাইটস অফিসের সঙ্গে আলাপ-আলোচনা করে সারা পৃথিবীর বেস্ট প্র্যাকটিসগুলো নির্ণয় করে তা থেকে আমাদের দেশের জন্য প্রয়োজনীয় অংশটুকু হয়ত আমরা বিধি দিয়ে গ্রহণ করব। প্রয়োজন হলে আইনের বিধিবিধান কিছুটা সংশোধনও করা হবে।’

নির্বাচন কমিশন গঠনে সংসদের চলমান অধিবেশনে আইন পাসের চেষ্টা করা হবে বলেও জানান মন্ত্রী।

ভূমির নিবন্ধন প্রক্রিয়া ভূমি মন্ত্রণালয়ের অধীনে দেয়া সংক্রান্ত এক প্রশ্নে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী এ বিষয়ে অনুশাসন দিয়েছেন, এটা আইন মন্ত্রণালয়ের অধীনে থাকবে। প্রধানমন্ত্রী যেখানে অনুশাসন দিয়েছেন সেখানে আলোচনার কোনো অবকাশ থাকতে পাবে না।’

‌এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘ভ্রাম্যমাণ আদালত নিয়ে আলোচনার বিষয়ে কোনো নির্দেশনা দেইনি। কারণ আমি বিচারাধীন বিষয় নিয়ে কথা বলি না। আমি ডিসিদের বলেছি- বিষয়টি বিচারাধীন। যখন রিভিউ হবে তখন চেষ্টা থাকবে এর ক্রটি-বিচ্যুতিগুলো সমাধান করার। যে রায় দেয়া হয়েছে সেটি স্থগিত আছে। আমি তাদের এটা জানিয়েছি।

‘দণ্ডবিধির ২২৮ ধারা মোবাইল কোর্ট আইনের তফসিলে যুক্ত করতে ডিসিদের দাবির বিষয়ে তিনি বলেন, ‘সিআরপিসি অনুযায়ী সামারি ট্রায়াল ও পাশাপাশি বেইলেবল। সেটা মোবাইল কোর্টে স্থানান্তর করতে অসুবিধা হওয়ার কথা না। তবু আমি এটি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত দেব।’

আরও পড়ুন:
অবশেষে শয্যা পেলেন দগ্ধ সবাই
সেই লঞ্চ থেকে দেড় শ যাত্রী উদ্ধারের দাবি কাউন্সিলরের
লঞ্চে আগুন: দগ্ধ-আহতদের রাষ্ট্রীয় খরচে চিকিৎসার দাবি
বরগুনার ১৯ যাত্রীকে হন্যে হয়ে খুঁজছেন স্বজনরা
‘পুড়ে যাওয়া লঞ্চের ফিটনেস ঠিক ছিল’

শেয়ার করুন

মসজিদে নামাজ পড়া নিয়ে নতুন নির্দেশনা নেই

মসজিদে নামাজ পড়া নিয়ে নতুন নির্দেশনা নেই

বায়তুল মোকাররম মসজিদে নামাজের একটি মুহূর্ত। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস

মসজিদে নামাজ পড়ার বিষয়ে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এর আগে যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, সেটা এখনও বলবৎ আছে। আমরা বলেছি স্বাস্থ্যবিধি মেনে নামাজ পড়ার জন্য।’

করোনাভাইরাস সংক্রমণ হারের ঊর্ধ্বগতির মধ্যে মসজিদে নামাজ পড়ার বিষয়ে নতুন করে কোনো নির্দেশনা নেই বলে জানিয়েছেন ধর্মবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান।

রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বৃহস্পতিবার ডিসি সম্মেলনে অংশ নিয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এর আগে যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে, সেটা এখনও বলবৎ আছে। আমরা বলেছি স্বাস্থ্যবিধি মেনে নামাজ পড়ার জন্য।

‘আগে বলা হয়েছিল ২০ জন মসজিদে নামাজ পড়তে পারবে। এমন একটা নিয়ম চালু করা হয়েছিল। আমরা বুঝতে পেরেছি, সেটা ঠিক নয়। বায়তুল মোকাররমে ৩৫ হাজার মানুষ নামাজ পড়তে পারে। সেখানে যদি ১০ হাজার মানুষ নামাজ পড়ে, তবে তো আইনের ব্যত্যয় ঘটবে বলে মনে হয় না। হয়তো ছোট ছোট মসজিদগুলোকে যেখানে ৪০-৫০ জন নামাজ পড়তে পারে, সেটা লক্ষ্য করে ওই নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল।’

জেলা প্রশাসকদের কী নির্দেশনা দেয়া হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা যেসব নির্দেশনা দিয়েছি, সেগুলোর মধ্যে রয়েছে ধর্মীয় সম্প্রীতি ও শান্তিপূর্ণ সহাবস্থান নিশ্চিত করুন। মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণকাজের তদারকি ও সংশ্লিষ্ট কাজের ভূমির জটিলতা নিরসনে বিশেষভাবে সচেষ্ট হওয়ার জন্য বলা হয়েছে। মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র পরিচালনা করতে হবে।’

সরকারি ব্যবস্থাপনায় হজে যাওয়ার বিষয়ে মাঠ পর্যায়ে জনসচেতনতা বাড়াতে ডিসিদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘ওয়াকফ সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা তালিকাভুক্ত করাসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে আরও সক্রিয় ভূমিকা রাখতে হবে। মসজিদ, মন্দির ও প্যাগোডাভিত্তিক প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা কার্যক্রম তদারকি করতে হবে।

‘জেলা পর্যায়ে চাঁদ দেখার বিষয়ে আরও যত্নবান ও দায়িত্বশীল হতে হবে। সারা দেশে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের মন্দির সংস্কারের কাজ তদারকি করতে হবে। কোভিড-১৯ নিয়ন্ত্রণে সময়ে সময়ে সরকারের জারি করা নির্দেশনাবলী সকল উপাসনালয়ে প্রচারের ব্যবস্থা করতে হবে।’

তাবলিগ জামাতের বিশ্ব ইজতেমায় অংশগ্রহণকারীদের কাছ থেকে কোনো চার্জ আরোপের চিন্তা সরকারের আছে কি না জানতে চাইলে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘এমন কোনো পরিকল্পনা হাতে নেই। সারা বিশ্ববাসী যখন বিশ্ব ইজতেমায় আসে, আল্লাহতায়ালা ইজতেমাকে কবুল করে নিয়েছেন।

‘কোনো অর্থ আরোপ করা সমীচীন হবে না বলে আমি ব্যক্তিগতভাবে মনে করি। আমি মনে করি এটা এ দেশের জন্য আল্লাহর বরকত।’

আরও পড়ুন:
অবশেষে শয্যা পেলেন দগ্ধ সবাই
সেই লঞ্চ থেকে দেড় শ যাত্রী উদ্ধারের দাবি কাউন্সিলরের
লঞ্চে আগুন: দগ্ধ-আহতদের রাষ্ট্রীয় খরচে চিকিৎসার দাবি
বরগুনার ১৯ যাত্রীকে হন্যে হয়ে খুঁজছেন স্বজনরা
‘পুড়ে যাওয়া লঞ্চের ফিটনেস ঠিক ছিল’

শেয়ার করুন

সিঙ্গেল ডোজের জনসনের টিকা ঢাকায়

সিঙ্গেল ডোজের জনসনের টিকা ঢাকায়

স্বাস্থ্য অধিদপ্তররের টিকা কমিটির সদস্য সচিব ডা. শামসুল হক বলেন, ‘আজ সকালে একটি বিশেষ ফ্লাইটে দেশে প্রথমবারের মতো জনসনের ৩ লাখ ৩৬ হাজার ডোজ করোনা টিকা এসেছে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে এই টিকা এসেছে কোভ্যাক্সের মাধ্যমে। অন্যান্য টিকা করোনা প্রতিরোধে দুই ডোজ দেয়ার প্রয়োজন হলেও এই টিকা এক ডোজ দিতে হয়।’

প্রথমবারের মতো জনসন অ্যান্ড জনসনের সিঙ্গেল ডোজের ৩ লাখ ৩৬ হাজার টিকা দেশে এসেছে। কোভ্যাক্সের আওতায় যুক্তরাষ্ট্র এই টিকা দিয়েছে বাংলাদেশকে। বৃহস্পতিবার সকালে একটি বিশেষ ফ্লাইটে ঢাকায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর এই টিকার চালান এসে পৌঁছেছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের টিকা কমিটির সদস্য সচিব ডা. শামসুল হক বৃহস্পতিবার দুপুরে নিউজবাংলাকে এসব তথ্য জানান। এর আগে বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের সরকারি সাহায্য সংস্থা ইউএসএইড তাদের ভেরিফায়েড ফেসবুকে জনসনের এই টিকা পাঠানোর উল্লেখ করে একটি পোস্ট দেয়।

ডা. শামসুল হক বলেন, ‘আজ সকালে একটি বিশেষ ফ্লাইটে দেশে প্রথমবারের মতো জনসনের ৩ লাখ ৩৬ হাজার ডোজ করোনা টিকা এসেছে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে এই টিকা এসেছে কোভ্যাক্সের মাধ্যমে। ‘এই টিকা সংরক্ষণ ও পরিবহন অনেকটা সহজ। তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণ নিয়ে তেমন জটিলতা নেই। অন্যান্য টিকা করোনা প্রতিরোধে দুই ডোজ দেয়ার প্রয়োজন হলেও এই টিকা মাত্র এক ডোজ দিতে হয়।’

আরও পড়ুন:
অবশেষে শয্যা পেলেন দগ্ধ সবাই
সেই লঞ্চ থেকে দেড় শ যাত্রী উদ্ধারের দাবি কাউন্সিলরের
লঞ্চে আগুন: দগ্ধ-আহতদের রাষ্ট্রীয় খরচে চিকিৎসার দাবি
বরগুনার ১৯ যাত্রীকে হন্যে হয়ে খুঁজছেন স্বজনরা
‘পুড়ে যাওয়া লঞ্চের ফিটনেস ঠিক ছিল’

শেয়ার করুন

নিয়োগ পরীক্ষায় দুর্নীতি, জীবন বিমার এমডির বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

নিয়োগ পরীক্ষায় দুর্নীতি, জীবন বিমার এমডির বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

দুদক সচিব মোহাম্মদ মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, জীবন বিমা করপোরেশনের নিয়োগ পরীক্ষায় দুর্নীতি ও অসৎ উদ্দেশ্যে নিজেদের মতো করে প্রশ্নপত্র পরিবর্তনের প্রমাণ পেয়েছে দুদক। তাই এই মামলার অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

নিয়োগ পরীক্ষায় অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগে জীবন বিমা করপোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) জহুরুল হক এবং সহকারী জেনারেল ম্যানেজার মো. মাহবুবুল আলমের বিরুদ্ধে মামলার অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদকের সমন্বিত কার্যালয় ঢাকা-১-এ বৃহস্পতিবার মামলাটি হয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন দুদক সচিব মোহাম্মদ মাহবুব হোসেন।

তিনি বলেন, জীবন বিমা করপোরেশনের নিয়োগ পরীক্ষায় দুর্নীতি ও অসৎ উদ্দেশ্যে নিজেদের মতো করে প্রশ্নপত্র পরিবর্তনের প্রমাণ পেয়েছে দুদক। ফলে তাদের বিরুদ্ধে মামলার অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

এই মামলার তদন্তের দায়িত্বে আছেন দুদকের সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ নুর আলম সিদ্দিকী।

দুদকের অনুসন্ধানী টিম এ বিষয়ে আরও তদন্ত করে এই অনিয়মের সঙ্গে অন্য কারও সম্পৃক্ততার অভিযোগ পেলে তাদের বিরুদ্ধেও আইনানুগ ব্যবস্থা নেবে বলে জানান দুদক সচিব। তিনি বলেন, ভবিষ্যতেও অন্যান্য নিয়োগের পরীক্ষায় অনিয়ম ও দুর্নীতির বিষয়েও দুদক তদন্ত করবে।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ২০২১ সালের সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত উচ্চমান সহকারী, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক ও অফিস সহায়ক পদে নিয়োগ পরীক্ষায় জাল-জালিয়াতি, বিভিন্ন অনিয়ম ও প্রশ্নপত্র ফাঁসের অভিযোগের প্রমাণ পেয়েছে দুদক।

এতে জড়িত থাকার প্রমাণ পাওয়ায় জীবন বিমা করপোরেশনের এমডি (অতিরিক্ত সচিব) মো. জহুরুল হক ও সহকারী জেনারেল ম্যানেজার (প্রশাসন) মো. মাহবুবুল আলমকে আসামি করা হয়েছে।

মামলায় বলা হয়, প্রতিষ্ঠানটিতে উচ্চমান সহকারী, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক এবং অফিস সহায়ক পদে নিয়োগ পরীক্ষায় অভিনব পন্থায় নিজেদের মতো করে প্রশ্ন প্রস্তুত এবং তার উত্তর সাজিয়ে তা ছাপানোর ব্যবস্থা করেন আসামিরা। পরবর্তী সময়ে তা চাকরি প্রার্থীদের সরবরাহ করেন।

এভাবে পরীক্ষা নিয়ে পরস্পর যোগসাজশে আসামিরা তাদের ওপর অর্পিত সরকারি ক্ষমতার অপব্যবহার করেছেন বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়েছে। বলা হয়েছে, এর মাধ্যমে বিশ্বাসভঙ্গের মাধ্যমে নিজেদের পছন্দের লোকদের নিয়োগ দিতে প্রশ্নের উত্তরের ধারাবাহিক ক্রমবিন্যাস পরিবর্তন করে শাস্তিযোগ্য অপরাধ করেছেন।

আর এই অপরাধের দায়ে আসামি দুজনের বিরুদ্ধে দণ্ডবিধির ৪০৯/১০৯ ধারা এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় কমিশন কর্তৃক একটি মামলা করার অনুমোদন দেয়া হয়েছে বলে জানান দুদক সচিব।

আরও পড়ুন:
অবশেষে শয্যা পেলেন দগ্ধ সবাই
সেই লঞ্চ থেকে দেড় শ যাত্রী উদ্ধারের দাবি কাউন্সিলরের
লঞ্চে আগুন: দগ্ধ-আহতদের রাষ্ট্রীয় খরচে চিকিৎসার দাবি
বরগুনার ১৯ যাত্রীকে হন্যে হয়ে খুঁজছেন স্বজনরা
‘পুড়ে যাওয়া লঞ্চের ফিটনেস ঠিক ছিল’

শেয়ার করুন

তৃতীয় ঢেউয়ের দ্বারপ্রান্তে করোনা, রোগী ৬৪ জেলাতেই

তৃতীয় ঢেউয়ের দ্বারপ্রান্তে করোনা, রোগী ৬৪ জেলাতেই

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসা করোনায় আক্রান্ত রোগী। ছবি: সাইফুল ইসলাম

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নীতিমালা অনুযায়ী টানা ১৪ দিন সংক্রমণের হার ৫ শতাংশের বেশি হলে করোনার পরবর্তী ঢেউ ধরে নিতে হবে। বৃহস্পতিবার টানা ১৩ দিন সংক্রমণের হার পাওয়া গেল ৫-এর বেশি। আরেক দিন এই হারে রোগী পাওয়া গেলেই করোনার তৃতীয় ঢেউ ধরে নিতে হবে।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় শাটডাউন নামে বিধিনিষেধ চলাকালে যে হারে সংক্রমণ হতো, সেই স্মৃতি ফিরে এসেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১০ হাজার ৮৮৮ জনের দেহে ভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে, যা গত ১০ আগস্টের পর সর্বোচ্চ।

শাটডাউন চলাকালে সেদিন দেশে ২৪ ঘণ্টায় ১১ হাজার ১৬৪ জনের দেহে সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। সেই দিনটি ছিল শাটডাউনের শেষ দিন। এর পরদিন থেকে বিধিনিষেধ শিথিল করা হতে থাকে।

বেশ কয়েক মাস পর দেশের ৬৪ জেলাতেই রোগী পাওয়া গেল।

বৃহস্পতিবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক বিবৃতিতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা সংক্রমণ, সংক্রমণের হার ও মৃত্যুর তথ্য জানানো হয়।

এতে জানানো হয়, বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত দেশে করোনার পরীক্ষা হয়েছে ৪১ হাজার ২৯৯ জনের। এদের মধ্যে ২৬.৩৭ শতাংশের দেহে সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণের হার শাটডাউনের সময়কালের ৫ আগস্টের পর সর্বোচ্চ। সেদিন ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণের হার ছিল ২৭.১২ শতাংশ।

এ নিয়ে টানা ১৩ দিন ৫ শতাংশের বেশি সংক্রমণ ধরা পড়ল। বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থার নীতিমালা অনুযায়ী আর এক দিন ৫ শতাংশের বেশি সংক্রমণ পাওয়া গেলেই দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ ধরে নিতে হবে।

গত ৪ অক্টোবর করোনার দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ন্ত্রণে আসার পর তৃতীয় ঢেউয়ের প্রাথমিক লক্ষণ ধরা পড়ে গত ৯ জানুয়ারি। সেদিন সংক্রমণের হার ৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যায়। এরপর ১৩ দিনে তা পাঁচ গুণ বাড়ল।

বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত দেশে করোনার পরীক্ষা হয়েছে ৪১ হাজার ২৯৯ জনের। এদের মধ্যে ২৬.৩৭ শতাংশের দেহে সংক্রমণ ধরা পড়েছে। ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণের হার শাটডাউনের সময়কালের ৫ আগস্টের পর সর্বোচ্চ। সেদিন ২৪ ঘণ্টায় সংক্রমণের হার ছিল ২৭.১২ শতাংশ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নীতিমালা অনুযায়ী টানা ১৪ দিন সংক্রমণের হার ৫ শতাংশের বেশি হলে করোনার পরবর্তী ঢেউ ধরে নিতে হবে।

রোগী বাড়লেও মৃত্যুর সংখ্যা কমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ৪ জনের মৃত্যুর তথ্য জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর, আগের দিন যা ছিল ১২ জন।

করোনার প্রথম ও দ্বিতীয় ঢেউয়ে মৃত্যুর হার তুলনামূলক বেশি হলেও তৃতীয় ঢেউয়ের আগে আগে এই হার বেশ কম।

এখন পর্যন্ত ভাইরাসটিতে ২৮ হাজার ১৭৬ জনের মৃত্যুর তথ্য জানানো হয়েছে।

এখন পর্যন্ত ভাইরাসটিতে সংক্রমিত হিসেবে শনাক্ত হয়েছে ১৬ লাখ ৫৩ হাজার ১৮২ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৫৪ হাজার ৮৪৫ জন।

প্রথম ও দ্বিতীয় ঢেউয়ের মতোই তৃতীয় ঢেউয়েও রোগী বেশি পাওয়া যাচ্ছে ঢাকা বিভাগে। গত ২৪ ঘণ্টায় যত রোগী পাওয়া গেছে, তার ৭০ শতাংশের মতোই পাওয়া গেছে এই বিভাগে।

পৌনে ১১ হাজার রোগীর মধ্যে ৭ হাজার ৩৭৯ জনই এই বিভাগের।

আরও পড়ুন:
অবশেষে শয্যা পেলেন দগ্ধ সবাই
সেই লঞ্চ থেকে দেড় শ যাত্রী উদ্ধারের দাবি কাউন্সিলরের
লঞ্চে আগুন: দগ্ধ-আহতদের রাষ্ট্রীয় খরচে চিকিৎসার দাবি
বরগুনার ১৯ যাত্রীকে হন্যে হয়ে খুঁজছেন স্বজনরা
‘পুড়ে যাওয়া লঞ্চের ফিটনেস ঠিক ছিল’

শেয়ার করুন

‘পাওয়ার অব অ্যাটর্নি’ থাকছে না

‘পাওয়ার অব অ্যাটর্নি’ থাকছে না

ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চোধুরী। ফাইল ছবি

ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী বলেন, ‘পাওয়ার অফ অ্যাটর্নি নিয়ে অনেক সমস্যা হচ্ছে। এই সুবিধা অপব্যহার করা হচ্ছে। যারা প্রবাসে থাকে, তাদের ক্ষেত্রে এম্বেসির মাধ্যমে পাওয়ার অফ অ্যাটর্নি ইলিজেবল। অন্যদের ক্ষেত্রে নো মোর পাওয়ার অ্যাটর্নি। পাওয়ার অফ অ্যাটর্নি বন্ধ করে দেব।’

পাওয়ার অফ অ্যাটর্নি ব্যবস্থার ঢালাও ব্যবহার আর থাকছে না। অপব্যবহারের উল্লেখ করে এই ক্ষমতা তুলে দেয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী। রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে চলমান ডিসি সম্মেলনে অংশগ্রহণ শেষে বৃহস্পতিবার সাংবাদিকদের এ কথা বলেছেন তিনি।

ভূমিমন্ত্রী বলেন, ‘পাওয়ার অফ অ্যাটর্নি নিয়ে অনেক সমস্যা হচ্ছে। এই সুবিধা অপব্যহার করা হচ্ছে। তাতে নানা সমস্যা হচ্ছে। আমি সরাসরি বলে দিয়েছি, যারা প্রবাসে থাকে তাদের ক্ষেত্রে এম্বেসির মাধ্যমে পাওয়ার অফ অ্যাটর্নি ইলিজেবল। তবে যারা দেশে আছে তাদের ক্ষেত্রে নো মোর পাওয়ার অ্যাটর্নি। পাওয়ার অফ অ্যাটর্নি বন্ধ করে দেব।’

ভূমির নামজারি ডিজিটালাইজ করার বিষয়ে সরকার প্রায় শতভাগ সফলতা পেয়েছে বলে দাবি করেন ভূমিমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘আমরা ডিজিটাইজেশনে অনেকটা সাকসেস হয়েছি। আমি বলতে পারি, নামজারি শতভাগ না হলেও শতভাগের কাছাকাছি আমরা অনলাইনে চলে গেছি।

‘আমরা একটি কাটঅফ টাইম দিয়েছিলাম, ম্যানুয়াল পদ্ধতিতে আর কোনো মিউটেশন হবে না। আমরা এটায় সাকসেসফুল। আমি বলব, ৯৯ ভাগ ক্ষেত্রে ফুললি ডিজিটাইজড।’

তিনি বলেন, ‘ভূমি উন্নয়ন কর নেয়া নিয়ে মাঠপর্যায়ে অনেক হয়রানি আছে। আমরা অনলাইনে কাজ শুরু করেছি। পাশাপাশি ম্যানুয়ালিও চলছে। কারণ অনেক ডাটা এখনও এন্ট্রি হয়নি। ডাটাগুলো সব এন্ট্রি হয়ে গেলে ম্যানুয়ালি আর কোনো ভূমি উন্নয়ন ট্যাক্স নেয়া হবে না। আশা করছি এ বছরের শেষ নাগাদ ম্যানুয়ালি ট্যাক্স গ্রহণ পুরোপুরি বন্ধ করে দেয়া সম্ভব হবে।’

ভূমিমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা মাঠপর্যায়ে ডিসক্রিশনারি পাওয়ার কমানোর চিন্তাভাবনা করছি। মাঠপর্যায়ে জবাবদিহিতার ক্ষেত্রে এখনও তারা স্বেচ্ছাচারিতা করে, হয়রানি করতে চায়। তাদের এই ক্ষমতা আমরা অনেক ক্ষেত্রেই কমিয়ে ফেলব। আর নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কাজ শেষ করতে না পারলে তাদের জবাবদিহি করতে হবে।’

বাংলাদেশ ডিজিটাল সার্ভেই সর্বশেষ সার্ভে হবে বলে জানান মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘বিডিএস হবে সর্বশেষ সার্ভে- বাংলাদেশ ডিজিটাল সার্ভে। বরগুনা ও পটুয়াখালীতে এটা পাইলট প্রকল্প হিসেবে নিচ্ছি। ড্রোনের মাধ্যমে, স্যাটেলাইটের মাধ্যমে ইমেজ নিয়ে আমরা কাজ করব। এটায় সাকসেসফুল হলে আমরা রেপ্লিকা করব সারা দেশে।

‘আজ জেলা প্রশাসকরা জানতে চেয়েছেন যে একসঙ্গে করা যায় কি না। কিন্তু এটা সম্ভব না। কারণ আমাদের এখানে ট্রায়াল অ্যান্ড অ্যাররের মাধ্যমে সার্ভেটা করতে হবে। অ্যাকিউরেসি ইজ ভেরি ইমপরটেন্ট। বাংলাদেশে ডিজিটাল সার্ভের পর আর কোনো সার্ভে প্রয়োজন হবে না। আমরা এখানে হান্ড্রেড পারসেন্ট অ্যাকিউরেসি এনশিওর করার চেষ্টা করব। এখন টেকনোলজির যুগ। আমরা আধুনিক সম্ভাব্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে স্বল্প সময়ের মধ্যে সারা দেশে সার্ভেটা করব।’

আরও পড়ুন:
অবশেষে শয্যা পেলেন দগ্ধ সবাই
সেই লঞ্চ থেকে দেড় শ যাত্রী উদ্ধারের দাবি কাউন্সিলরের
লঞ্চে আগুন: দগ্ধ-আহতদের রাষ্ট্রীয় খরচে চিকিৎসার দাবি
বরগুনার ১৯ যাত্রীকে হন্যে হয়ে খুঁজছেন স্বজনরা
‘পুড়ে যাওয়া লঞ্চের ফিটনেস ঠিক ছিল’

শেয়ার করুন