বঙ্গবন্ধু-বাংলাদেশকে জানাবে নাঈমের রোবট

player
বঙ্গবন্ধু-বাংলাদেশকে জানাবে নাঈমের রোবট

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ছাত্র শেখ নাঈম হাসান মুন ও তার দলের বানানো রোবট। ছবি: নিউজবাংলা

রোবটের প্রধান নির্মাতা নাঈম বলেন, ‘ইতিহাস-ঐতিহ্য নিয়ে আমাদের সভা-সেমিনারগুলোতে অনেক সময় বক্তার কথায় মনোযোগ থাকে না শ্রোতাদের। বক্তা রোবট হলে কিন্তু স্বাভাবিক কারণেই আগ্রহ বাড়বে। আর এটি চিন্তা করেই হিউম্যানয়েড রোবট বানিয়েছি আমরা।’

‘আসসালামু আলাইকুম। সবাইরে বিজয় দিবসের শুভেসসা। আমি মানিক, মানিক মিয়া; আসতাছি বঙ্গবন্ধু আর বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস লইয়া মাইনষেরে জানাইতে। মা হাসুরে...আমি তোর মানিক চাচারে…তোর আব্বাজানের সবচেয়ে কাছের বন্ধু। আমি আমার বন্ধুর গপ্পো সবাইরে কইতে আসতেছিরে মা। তোর লগেও দ্যাহা করুমনে।’

চেয়ারে বসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দেশবাসীর উদ্দেশে কথাগুলো বলছিলেন ঘন গোঁফওয়ালা, চশমা পরা বয়স্ক এক ব্যক্তি। কাঁচা-পাকা চুলওয়ালা ব্যক্তির পরনে সবুজ চেকের পাঞ্জাবি। তার গলায় ঝোলানো মাফলার।

শুরুতে দেখে মনে হতে পারে, ওই ব্যক্তি কোনো পাপেট শোর চরিত্র, কিন্তু আদতে তা নয়। এ মানিক মিয়া গল্পকথক এক রোবট, যার প্রধান নির্মাতা শেখ নাঈম হাসান মুন।

ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির ইনোভেশন অ্যান্ড অন্ট্রুপ্রেনিয়রশিপ বিভাগের প্রথম বর্ষ দ্বিতীয় সেমিস্টারের ছাত্র নাঈম। তার ধ্যান-জ্ঞান রোবোটিকস। ‘মানিক মিয়া’সহ এ পর্যন্ত ৩০টি রোবট বানিয়েছেন যশোরের এ তরুণ; পেয়েছেন পুরস্কারও।

সবশেষ রোবটটি নির্মাণ নিয়ে নাঈমের সঙ্গে কথা বলেছে নিউজবাংলা। সে আলাপে উঠে এসেছে উদ্ভাবনের আদ্যোপান্ত।

ধারণা এলো কীভাবে

২০১৯ সালের আগস্টে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরে ‘বঙ্গবন্ধু অ্যাওয়ার্ড’ দেয়া হয়। সেই অ্যাওয়ার্ড জয়ীদের একজন ছিলাম আমি। ‘গ্যারি’ নামের একটি রোবটের জন্য অ্যাওয়ার্ডটি পাই। এটি মূলত নেটওয়ার্কিং রোবট, যেটা সাইবার সিকিউরিট দেয়। তো সেই সময়ে মুজিববর্ষকে সামনে রেখে কে, কোন ধরনের ইনোভেশন করবে, তার একটা আলোচনা চলছিল। আমার মাথায় তখন কমপ্লিট একটু কিছু করার প্ল্যান আসল। অর্থাৎ এমন কিছু একটা করা, যেটা হবে কমপ্লিট প্যাকেজ। এতে একসঙ্গে বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ, বাংলার ইতিহাস জানা যাবে। আর সেই থেকেই কাজটা শুরু করি।

দলে ভাঙা-গড়া

এ রোবটটা বানাতে গিয়ে আমি রিসার্চে অনেক টাইম দিয়েছি। আমার টিম ব্যাপক ভাঙা-গড়ার মধ্য দিয়ে গেছে। চারবার টিম ভেঙেছে। কারণ টিম মেম্বারদের সবার সমান ডেডিকেশন ছিল না। আমার তখন বঙ্গবন্ধুর সাতই মার্চের ভাষণের দুটি অংশ মাথায় আসছিল। সেগুলো হলো ‘আমাদের দাবায়া রাখতে পারবা না’, ‘যার যা কিছু আছে তা নিয়েই ঝাঁপিয়ে পড়ো।’ এই ইন্সপিরেশন নিয়ে প্রজেক্ট থেকে না সরে এগিয়ে গেছি। ফাইনালি চারজনের দল নিয়ে এটা বানাতে পেরেছি। এ দলে আমার সঙ্গে আছে আর এন বাধন, মনিরুজ্জামান হৃদয় ও নাঈমুল ইসলাম অরণ্য।

বঙ্গবন্ধু-বাংলাদেশকে জানাবে নাঈমের রোবট

নির্মাণের সময়

আমার প্রথম টার্গেট ছিল মুজিববর্ষ শুরুর দিন ২০২০ সালের ১৭ মার্চ রোবটটা লঞ্চ করা, কিন্তু সে সময় আমার পর্যাপ্ত ফান্ডিং ছিল না। এ কারণে কাজটা পিছিয়ে যায়। পরবর্তী সময়ে টার্গেট ধরলাম ২০২০ সালের ১৬ ডিসেম্বর। তখন ফেইল করলাম অন্য একটা কারণে। আমাদের এইচএসসি পরীক্ষা হবে কি হবে না, সেটা নিয়ে একটা দোটানা ছিল। অক্টোবরে জানতে পারলাম আমাদের অটোপাস দেয়া হয়েছে। এর পরে দুই মাস সময়ে এ কাজ কমপ্লিট করা সম্ভব ছিল না। তাই রোবটটা বানাতে নতুন উদ্যমে কাজ শুরু করলাম। এবার আমি একটু নীরবে কাজ করতে থাকি। এ বছরের জুলাইয়ের শেষের দিকে এসে আমি টিম নিয়ে কাজ শুরু করি। তখনই আসলে হিউম্যানয়েড রোবট নিয়ে কাজ করার বিষয়টা জানাজানি হলো। আমার টিমমেটরা হার্ডওয়ার্ক করেছে। তাদের কারণে এই ১৬ ডিসেম্বরে বেটা ভার্সনটা রিলিজ করতে পেরেছি।

টাকার জোগান কীভাবে

রোবটটার রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট ও ফাইনাল প্রোডাক্ট মিলিয়ে মোট খরচ ৯ লাখ টাকার কাছাকাছি। আমার নিজের একটা আইটি ফার্ম আছে ‘এনাবেল আইডি’ নামে। এটা মূলত রোবোটিকস, সাইবার সিকিউরিটি এবং অ্যানিমেশন নিয়ে কাজ করে। সেখানে আমার ব্যক্তিগত আয়ের কিছু অংশ থেকে ৬ লাখ টাকার মতো আরঅ্যান্ডডি (রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট) খাতে ব্যয় করি। বাকি তিন লাখ টাকার মতো দিয়েছেন নরসিংদীর মাধবদী পৌরসভার মেয়র মোশাররফ হোসেন।

মানিক মিয়া নামকরণ কেন

বেটা ভার্সন রিলিজের আগে নভেম্বরে আমরা নামটা ফিক্স করি। যেহেতু আমাদের অন্যতম উদ্দেশ্য বঙ্গবন্ধুকে জানানো, সেহেতু এ কাজে তারই কাছের একজনকে বেছে নেয়া হয়েছে। সে মানিক মিয়া কে, তা যথাসময়ে জানানো হবে।

বঙ্গবন্ধু-বাংলাদেশকে জানাবে নাঈমের রোবট

কী বার্তা দেবেন মানিক মিয়া

বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য নিয়ে নেটে জানতে গেলে তথ্য পাওয়া গেলেও অনেক সময় তা বিক্ষিপ্তভাবে থাকে। অর্থাৎ একসঙ্গে কমপ্লিট আকারে পাওয়া যায় না। আমরা সে কাজটা করতে চাই। ধরা যাক, বঙ্গবন্ধু অবসরে কী কী কাজ করতেন, কী খেতেন, এমন তথ্য হয়তো নেটে পাওয়া যেতে পারে, কিন্তু সেটা এতটা ডিটেইল আকারে পাওয়া হয়তো যাবে না। আমরা মানিক মিয়াকে দিয়ে ডিটেইল বলাব। এ রোবট একই সঙ্গে বাংলাদেশের সংগ্রামের ইতিহাস, বাংলার ইতিহাসের কথা বলবে।

ইতিহাস জানাতে রোবট কেন

ইতিহাস-ঐতিহ্য নিয়ে আমাদের সভা-সেমিনারগুলোতে অনেক সময় বক্তার কথায় মনোযোগ থাকে না শ্রোতাদের। বক্তা রোবট হলে কিন্তু স্বাভাবিক কারণেই আগ্রহ বাড়বে। আর এটি চিন্তা করেই হিউম্যানয়েড রোবট বানিয়েছি আমরা।

আপনাদের চূড়ান্ত লক্ষ্য কী

আমরা চাই বাংলাদেশের তরুণ প্রজন্ম বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশের সঠিক ইতিহাস জানুক। সে কারণে আমরা ফাইনাল ভার্সনটা সময় নিয়ে গুছিয়ে করার চেষ্টা করছি। আমাদের এরই মধ্যে আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স (এআই) রেডি হয়ে গেছে। এরপরও আমরা সেটি সংযুক্ত করিনি। আমরা একটা গাইডলাইন খুঁজছি। তার আলোকে আমরা কাজটা করব।

চূড়ান্ত সংস্করণ কবে আসবে

আমাদের টিমের লক্ষ্য আগামী বছরের শুরুর মাসগুলোতে রোবটটাকে পাবলিক করা, তবে সে সময়কে চূড়ান্ত বলতে পারছি না। কারণ এটা খুবই সেনসিটিভ একটা কাজ। এখানে একটা ভুলে বড় ধরনের বিভ্রান্তি সৃষ্টি হবে; অনেকে ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তাই আমরা চাই বিষয়টা আগে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেখাই। তিনিসহ সংশ্লিষ্টদের কাছ থেকে আমরা গাইডলাইন নেব। আমরা ডেটা টিমও গোছাচ্ছি। সবকিছু ঠিকঠাক হলে বিষয়টা ফাইনালাইজ করব।

সাড়া কেমন পাচ্ছেন

বেটা ভার্সন নিয়ে এরই মধ্যে অনেকে আগ্রহ দেখিয়েছে। পলক ভাই (আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক) কংগ্রাচুলেট করেছেন। মাশরাফি ভাই (জাতীয় দলের ক্রিকেটার) প্রেইজ করেছেন। এর বাইরে অনেকেই পারসোনালি কংগ্রাচুলেট করেছে।

আরও পড়ুন:
বয়স্ক ও শারীরিক অক্ষমদের জন্য রোবট আনছে হুন্দাই
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
২ লাখ ডলারে চেহারা ও কণ্ঠ বিক্রি করার সুযোগ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মানব মস্তিষ্কে চিপ লাগানোর দ্বারপ্রান্তে নিউরালিংক

মানব মস্তিষ্কে চিপ লাগানোর দ্বারপ্রান্তে নিউরালিংক

ব্রেইন কম্পিউটার ইন্টারফেস প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছেন ইলন মাস্ক। ছবি: সংগৃহীত

গত বছরের ডিসেম্বরে ওয়ালস্ট্রিট জার্নালকে ইলন মাস্ক জানিয়েছিলেন, ২০২২ সালের কোনো একসময়ে নিউরালিংক মানবদেহে চিপ স্থাপন করবে।

মানব মস্তিষ্কে চিপ বসানোর জন্য অনেক দিন ধরেই কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের শীর্ষ ধনী ইলন মাস্কের প্রতিষ্ঠান নিউরালিংক।

কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য পরিচালক নিয়োগ দিচ্ছে নিউরালিংক।

যুক্তরাষ্ট্রের বড় প্রতিষ্ঠানগুলো নতুন ডিভাইস ট্রায়ালের আগে সাধারণত ট্রায়াল ডিরেক্টর নিয়োগ করে থাকে।

ধারণা করা হচ্ছে, নিউরালিংক মানব মস্তিষ্কে চিপ স্থাপনের খুব কাছাকাছি চলে গেছে।

ডিরেক্টরের দায়িত্ব সম্পর্কে বলা হয়েছে, নিয়োগ পাওয়া ব্যক্তিকে খুবই আন্তরিকতার সঙ্গে সৃজনশীল একদল ডাক্তার ও উচ্চমানের ইঞ্জিনিয়ারদের সঙ্গে কাজ করতে হবে।

এর আগে গত বছরের ডিসেম্বরে ওয়ালস্ট্রিট জার্নালকে ইলন মাস্ক জানিয়েছিলেন, ২০২২ সালের কোনো একসময়ে নিউরালিংক মানবদেহে চিপ স্থাপন করবে।

যদিও ২০১৯ সাল থেকে প্রতি বছরই ইলন মাস্ক বলে আসছেন মানবদেহে চিপ স্থাপনের কথা। সম্ভবত এ বছরই বাস্তবে রূপ পাচ্ছে মাস্কের স্বপ্নের।

ইতিমধ্যে শূকর ও বানরের মস্তিষ্কে নিউরালিংক ডিভাইস সফলতার সঙ্গে স্থাপন করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটি দাবি করছে, ডিভাইসটি স্থাপন ও অপসারণ সম্পূর্ণ নিরাপদ।

গত বছরের এপ্রিলে নিউরালিংক পেইজা নামের এক বানরের ভিডিও প্রকাশ করে। যেখানে দেখা যায়, কোনো ধরনের স্পর্শ ছাড়াই মস্তিষ্ককে ব্যবহার করে পেইজা কম্পিউটারে পিংপং গেম খেলছে।

ভিডিওটিতে দেয়া ভয়েসওভারে বলা হয়, ‘নিউরালিংক তার ব্রেইন চিপের মাধ্যমে বানরের মোটর কর্টেক্স অঞ্চলে প্রতিস্থাপন করা দুই হাজারের বেশি সূক্ষ্ম তারের ইলেকট্রোড ব্যবহার করে মস্তিষ্ক থেকে বৈদ্যুতিক সংকেত রেকর্ড ও ডিকোডের কাজ করে, যা সরাসরি কম্পিউটার ডিভাইসে প্রেরণ করে।’

প্রতিষ্ঠানটির দাবি, ডিভাইসটি ভবিষ্যতে মানুষের মস্তিষ্কসংক্রান্ত বহু সমস্যার সমাধান করবে। স্মৃতিশক্তি হারিয়ে ফেলা, ব্রেইন ড্যামেজ, হতাশা, উদ্বেগ ও আসক্তির মতো সমস্যার সমাধান ছাড়াও বিভিন্ন নিউরোসংক্রান্ত সমস্যার সমাধান করতে পারবে।

এ ছাড়া প্যারালাইসিসে আক্রান্ত ব্যক্তিও স্পর্শ ছাড়াই মোবাইল, কম্পিউটারের মতো ডিভাইস ব্যবহার করতে পারবে।

তবে ইলন মাস্কের দাবি আরও বিস্তৃত। ভবিষ্যতে নতুন কোনো ভাষা শেখার ক্ষেত্রে কিংবা কোনো দক্ষতা অর্জনের ক্ষেত্রে নিউরালিংক ডিভাইস মুহূর্তে তা মস্তিষ্কে আপলোড করে দেবে। এমনকি ব্রেইনকে কপি করা সম্ভব হবে বলেও আশাবাদী মাস্ক।

নিউরালিংক ব্রেইন মেশিন ইন্টারফেস (বিএমআই) বা ব্রেইন কম্পিউটার ইন্টারফেস (বিসিআই) প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করে। এ ধরনের প্রযুক্তিতে মানব মস্তিষ্কের সঙ্গে সরাসরি কম্পিউটারের সংযোগ করে দেয়া হয়। ফলে শুধু মস্তিষ্ককে কাজে লাগিয়ে কম্পিউটার ব্যবহার করা সম্ভব।

ইতিমধ্যে বানর ও শূকরের মধ্যে ডিভাইসটি স্থাপন করে সফলতা পাওয়া গেছে। পেইজা নামের বানরটি নিউরালিংক ডিভাইসের মাধ্যমে নিজের মনকে কাজে লাগিয়ে পিংপং বল নামের গেম খেলতে সক্ষম হয়।

নিউরালিংক ডিভাইস মূলত ব্রেইন কম্পিউটার ইন্টারফেস প্রযুক্তি। এই প্রযুক্তি মানব মস্তিষ্ককে সরাসরি কম্পিউটারের সঙ্গে সংযোগ করিয়ে দিতে পারে। ফলে কোনো শারীরিক কর্মকাণ্ড ছাড়াই শুধু চিন্তা করে কম্পিউটারের মতো ডিভাইসকে নিয়ন্ত্রণ করা যায়।

আরও পড়ুন:
বয়স্ক ও শারীরিক অক্ষমদের জন্য রোবট আনছে হুন্দাই
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
২ লাখ ডলারে চেহারা ও কণ্ঠ বিক্রি করার সুযোগ

শেয়ার করুন

দীর্ঘ অনশনে কী ঘটে শরীরে?

দীর্ঘ অনশনে কী ঘটে শরীরে?

অনশনের ব্যাপক প্রভাব রয়েছে শরীর ও মনস্তত্ত্বে। গ্রাফিক্স: সংগৃহীত

তিন দিনের অনশনের পর মানবদেহ নিজের পেশিতে থাকা প্রোটিন ব্যবহার করে কোষের সক্রিয়তা বজায় রাখার প্রয়োজনীয় গ্লুকোজ সংগ্রহ করে। এতে করে প্রয়োজনীয় ইলেকট্রোলাইট বা খনিজ যেমন, পটাশিয়ামের মাত্রা দেহে ভয়ংকর পরিমাণে কমে যায়। একই সঙ্গে দেহ চর্বি ও পেশির আয়তন হারিয়ে ফেলে।

সামাজিক বা রাজনৈতিক কঠোর আন্দোলনে অনশন বিশ্বজুড়ে একটি প্রচলিত হাতিয়ার। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্যবিরোধী আন্দোলনেও অনশন কর্মসূচি পালন করছেন একদল শিক্ষার্থী।

সোজাসাপ্টা কথায় অনশন হচ্ছে না খেয়ে থাকা। অনশনকারীরা তাদের দাবি পূর্ণ না হওয়া পর্যন্ত খাবার না খেতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হন।

রাজনৈতিক ও সামাজিক আন্দোলনের হাতিয়ার এই অনশনে শরীরে কী প্রভাব পড়ে এবং অনশনে মৃত্যুঝুঁকি কতটা সে বিষয়ে বৈজ্ঞানিক গবেষণা পর্যালোচনা করেছে নিউজবাংলা।

দেখা গেছে অনশনে মৃত্যুর নজির খুব বেশি না থাকলেও মানবশরীর ও মনস্তত্ত্বে এ ধরনের কর্মসূচির প্রভাব ব্যাপক।

যুক্তরাজ্যের ডিপার্টমেন্ট অফ হেলথের সহযোগিতায় ২০০৮ সালে দেশটির অন্যতম শীর্ষ মেডিক্যাল জার্নাল দ্য ল্যানসেটে প্রকাশিত হয় অনশন নিয়ে একটি প্রতিবেদন।

সেখানে বলা হয়, ‘সুস্বাস্থ্যের অধিকারী কেউ অন্তত ছয় থেকে আট সপ্তাহ কম খাবার খেয়ে বা না খেয়ে থাকতে পারেন। তবে যাদের স্বাস্থ্য খারাপ তারা তিন সপ্তাহের মধ্যে মারা পড়তে পারেন।

‘আর পানি ছাড়া অবস্থা খুব দ্রুত খারাপের দিকে যেতে পারে। আবহাওয়া উষ্ণ থাকলে সাত থেকে ১৪ দিনের মধ্যে মৃত্যুও হতে পারে।’

সবচেয়ে দীর্ঘ অনশন

ভারতের ‘আয়রন লেডি অফ মনিপুর’ খ্যাত ইরম চানু শর্মিলা প্রায় ১৬ বছর অনশন করেছিলেন। ‘আর্মড ফোর্সেস অ্যাক্ট নাইন্টিন ফিফটি এইট’ এর প্রতিবাদে তিনি ২০০০ সালের ৫ নভেম্বর অনশন শুরু করেন। শেষ করেন ২০১৬ সালের ৯ আগস্ট।

কারাগারে খাবার ও পানি গ্রহণে অস্বীকৃতি জানানোয় প্রায় পুরোটা সময় তাকে নাকে নল দিয়ে জোর করে খাবার দেয়া হয়েছে।

তবে একেবারেই খাবার গ্রহণ না করে অনশনের রেকর্ড ববি স্যান্ডের। বিতর্কিত আইরিশ রিপাবলিক আর্মির এ সদস্য কারাগারে টানা ৬৬ দিন না খেয়ে ছিলেন। মৃত্যুর আগে তিনি কোমায় চলে যান।

ক্ষুধার কষ্ট বেশিক্ষণ থাকে না

যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফোর্নিয়া কারেকশনাল হেলথ কেয়ার সার্ভিসেস বলছে, অনশন বা না খেয়ে থাকার যে কষ্ট সেটা দুই বা তিন দিন পর আর থাকে না।

কারণ, তিন দিনের অনশনের পর মানবদেহ নিজের পেশিতে থাকা প্রোটিন ব্যবহার করে কোষের সক্রিয়তা বজায় রাখার প্রয়োজনীয় গ্লুকোজ সংগ্রহ করে। এতে করে প্রয়োজনীয় ইলেকট্রোলাইট বা খনিজ যেমন, পটাশিয়ামের মাত্রা দেহে ভয়ংকর পরিমাণে কমে যায়। একই সঙ্গে দেহ চর্বি ও পেশির আয়তন হারিয়ে ফেলে।

দুই সপ্তাহ পর অনশনকারীদের দাঁড়িয়ে থাকতে কষ্ট হয়। প্রচণ্ড মাথা ঘোরা, দুর্বলতা, হাত-পা নাড়তে বা কথা বলায় ধীরগতি, হৃদস্পন্দন কমে যাওয়া ও শীতের অনুভূতি হতে পারে।

দুই বা তিন সপ্তাহের মাথায় শরীরে থায়ামিনের (ভিটামিন বি-ওয়ান) মাত্রা কমে মারাত্মক স্নায়বিক সমস্যা সৃষ্টি করে। এগুলোর মধ্যে রয়েছে বুদ্ধিবৃত্তি লোপ পাওয়া, দৃষ্টিশক্তি হ্রাস পাওয়া ও নড়াচড়ার সক্ষমতা কমে যাওয়া।

সাউথ আফ্রিকান সাংবাদিক ডেভিড বেরেসফোর্ড ববি স্যান্ডের মৃত্যু নিয়ে লস অ্যাঞ্জেলেস টাইমসে লিখেছেন। তিনি লেখেন, ‘মৃত্যুর আগে স্যান্ডস মাথার ভেতরে বিভিন্ন কিছুর প্রতিধ্বনি শুনতে পেতেন। স্ট্রোকের রোগীর মতো তার মুখ বেঁকে যায়। তার পায়ে কোনো অনুভূতি ছিল ন। শুধু ফিসফিসিয়ে কথা বলতে পারতেন।’

স্থায়ী জটিলতা ও মৃত্যু

এক মাস না খেয়ে থাকলে বা শরীরের ১৮ শতাংশ ওজন হারালে, মারাত্মক ও স্থায়ী জটিলতা দেখা দিতে পারে। পানি খেতে সমস্যা, দৃষ্টি ও শ্রবণশক্তি হ্রাস পাওয়া, নিঃশ্বাস নিতে কষ্ট হওয়ার মতো সমস্যা দেখা যেতে পারে। বিকল হয়ে পড়তে পারে শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ।

৪৫ দিন পার হয়ে গেলে, হৃদযন্ত্র অচল হয়ে বা মারাত্মক কোনো সংক্রমণে মৃত্যুর ঝুঁকি অনেকটাই বেড়ে যায়।

অনশনের সময় শারীরিক ক্ষতির পাশপাশি মানসিক পরিবর্তন ঘটে। এ সময় আগ্রাসী এবং আবেগী প্রতিক্রিয়া দেখা যাওয়া খুব সাধারণ ঘটনা।

জার্নাল অফ মেডিক্যাল এথিকসের মতে, ‘এই প্রভাবগুলো কখনো এমন পর্যায়ে যায় যে অনশনকারীরা না খেয়ে মারা যেতে পারেন।’

১৯৮১ সালের যে অনশনে ববি স্যান্ডস মারা যান, ওই অনশনে অংশ নেয়া আরও ১০ জন প্রাণ হারিয়েছিলেন। সাম্প্রতিক সময়ে অনশনে একসঙ্গে এত বেশি মৃত্যুর নজির নেই।

বাংলাদেশে সাম্প্রতিককালে অনশনের সময় অসুস্থ হয়ে মারা গেছেন এক পাটকলশ্রমিক। সংবাদমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, খুলনার প্লাটিনাম জুট মিলের শ্রমিক আব্দুস সাত্তার ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে মারা যান। পাটকলশ্রমিক মজুরি কমিশন, বকেয়া মজুরিসহ ১১ দফা দাবিতে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকলশ্রমিকদের আমরণ অনশনে যোগ দিয়েছিলেন সাত্তার।

ইরানের রাজনৈতিক বন্দি ভাহিদ সায়েদি নাসিরি প্রায় ছয় মাস অনশনে থাকার পর ২০১৮ সালের ১২ ডিসেম্বর মারা যান।

নেপালের নাগরিক নন্দা প্রসাদ অধিকারী ছেলের খুনের বিচারের দাবিতে অনশন শুরু করেন ২০১৩ সালে। ৩৩৩ দিন অনশনের পর তিনি ২০১৪ সালের ২২ সেপ্টেম্বর মারা যান।

এর আগে ভারতীয় শান্তিরক্ষী বাহিনী ও তামিল টাইগারদের মধ্যে শান্তিচুক্তির দাবিতে ১৯৮৮ সালের ১৮ মার্চ অনশন শুরু করেন শ্রীলঙ্কার গৃহবধূ পুপাথি কানাপাতিপিল্লাই। এর এক মাস পর ১৯ এপ্রিল তার মৃত্যু হয়।

দীর্ঘ অনশন শেষে খাওয়াটাও ঝুঁকিপূর্ণ

অনশন শেষ করার পর অনশনকারীদের খাওয়ানো ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে দাঁড়ায়। কারণ অনশনের সময় দেহের মেটাবলিজম বা বিপাক প্রক্রিয়ায় ব্যাপক পরিবর্তন আসে।

গ্যাস্ট্রোঅ্যান্টেরোলজি রিসার্চ অ্যান্ড প্র্যাকটিস জার্নালে ২০১১ সালে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে বলা হয়, কয়েক সপ্তাহ না খেয়ে থাকা মানুষের দেহে ফের ইলেকট্রোলাইট ও পুষ্টি উপাদান প্রবেশ করানোর ক্ষেত্রে সাবধানতা অবলম্বন করা উচিত।

আরও পড়ুন:
বয়স্ক ও শারীরিক অক্ষমদের জন্য রোবট আনছে হুন্দাই
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
২ লাখ ডলারে চেহারা ও কণ্ঠ বিক্রি করার সুযোগ

শেয়ার করুন

সময়ের প্রান্তের দুটি ছায়াপথের সন্ধান

সময়ের প্রান্তের দুটি ছায়াপথের সন্ধান

জোতির্বিজ্ঞানীরা সদ্য আবিষ্কৃত দুটি ছায়াপথের নাম দিয়েছেন রেবেলস-১২-২ এবং রেবেলস-২৯-২। ছবিঃ সংগৃহীত

রেবেলস-১২-২ ও রেবেলস-২৯-২ ছায়াপথ দুটি এত দিন মহাজাগতিক ধূলিকণার মেঘের আড়ালে লুকিয়ে ছিল। কোনো সন্দেহ নেই, এই আবিষ্কারের ফলে বিজ্ঞানীরা মহাজগতের শুরুর দিকের নক্ষত্র ও ছায়াপথগুলো সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে পারবে।

মহাবিশ্বের জন্ম হয়েছে বিগ ব্যাং-এর মাধ্যমে। আমাদের ছায়াপথ মিল্কিওয়ে কিংবা পার্শ্ববর্তী ছায়াপথ এন্ড্রোমিডা অথবা আমরা জানালা খুললে আকাশে যে নক্ষত্র দেখি, তার সবই উৎপত্তি বিগ ব্যাং-এর পরে।

এমনকি আমরা সময় বলতে যা বুঝি তারও জন্ম বিগ ব্যাং-এর ফলে।

বিজ্ঞানীদের ধারণা, আজ থেকে প্রায় ১ হাজার ৩০০ কোটি বছর আগে বিগ ব্যাং হওয়ার ফলে মহাবিশ্ব জন্মলাভ করে। বিগ ব্যাং সংগঠিত হওয়ার একদম শুরুর দিকে স্থান ও সময়ের শুরুতে যে ছায়াপথগুলো জন্মলাভ করে সেগুলোর সাধারণত কসমিক ডাউন (মহাজাগতিক ভোর) সময়কার ছায়াপথ হিসেবে তালিকাভুক্ত করা হয়।

অর্থাৎ কসমিক ডাউন ছায়াপথগুলোর জন্ম সময়ের উৎপত্তির একেবারে প্রান্তে।

এবার ভাইসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, স্থান ও সময়ের প্রান্তে জন্মলাভ করা এমন নতুন দুটি ছায়াপথ আবিষ্কার করেছেন বিজ্ঞানীরা। যাদের উৎপত্তি হয়েছিল মহাবিশ্ব সৃষ্টির ৮০ কোটি বছর পরে।

এই দুটি ছায়াপথ এত দিন মহাজাগতিক ধূলিকণার মেঘের আড়ালে লুকিয়ে ছিল। কোনো সন্দেহ নেই, এই আবিষ্কারের ফলে বিজ্ঞানীরা মহাজগতের শুরুর দিকের নক্ষত্র ও ছায়াপথগুলো সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে পারবে।

জাপানের ওয়াসেদা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞান ও প্রকৌশল গবেষণা প্রতিষ্ঠানের জোতির্বিজ্ঞানী ইয়োশিনোবু ফুদামোটো এবং জাপানের জাতীয় জোতির্বিজ্ঞান পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের (নাওজি) নেতৃত্বে বিজ্ঞানীরা প্রতিবেশী ছায়াপথগুলোর ওপর নজর রাখার সময় দুর্ঘটনাক্রমে দুটি ছায়াপথ থেকে আলাদা ধরনের বর্ণালি সংকেত দেখতে পান, স্বাভাবিক অতিবেগুনি রশ্মি (আলট্রা ভায়োলেট রে) থেকে অনেক বেশি উজ্জ্বল ছিল।

দলটি বলছে, ‌‘আমাদের গ্যালাক্সির উৎপত্তির সময়কে গণনা করার জন্য যে মাপকাঠি (অতিবেগুনি রশ্বিভিত্তিক) রয়েছে তা অসম্পূর্ণ।

২০১৯ সালের নভেম্বরে, ফুডোমোটো এবং তার সহকর্মীরা চিলির একটি অত্যন্ত সংবেদনশীল ইন্টারফেরোমিটার অ্যাটাকামা লার্জ মিলিমিটার/ সাবমিলিমিটার অ্যারে (এএলএমএ) মহাবিশ্বের আদিম ছায়াপথগুলো পর্যবেক্ষণ করছিলেন।

ফুডোমোটো ও তার সহকর্মীরা কাজ করেন রি-আয়োনাইজেশন-ইরা ব্রাইট ইমিশন লাইন সারভে (রেবেলস) নামের একটি প্রকল্পে। এই প্রকল্পের অধীনে তারা কসমিক ডাউনের সময়কার প্রায় ৪০টি ছায়াপথ নিয়ে অধ্যয়ন করছিলেন।

দলটি রেবেলেস-১২ ও রেবেলস-২৯ নামের দুটি ছায়াপথ পরীক্ষা করার সময় তারা কয়েক হাজার আলোকবর্ষ দূরে অবস্থিত দুটি নক্ষত্রের নিদর্শন উজ্জ্বল বর্ণালি সংকেত দেখতে পায়।

জোতির্বিজ্ঞানীরা সদ্য আবিষ্কৃত দুটি ছায়াপথের নাম দিয়েছেন রেবেলস-১২-২ এবং রেবেলস-২৯-২।

ধারণা করা হচ্ছে, মহাজাগতিক ধুলার আড়ালে কসমিক ডাউনের আরো পাঁচটি ছায়াপথ লুকিয়ে আছে।

ভাগ্যক্রমে আবিষ্কার হওয়া এই নতুন দুটি ছায়াপথের পরে জোতির্বিজ্ঞানীদের ধারণা মহাজাগতিক ধূলিকণার মেঘের আড়ালে কসমিক ডাউন যুগের আরও পাঁচটি ছায়াপথের সন্ধান পাওয়া যেতে পারে। তাই বিজ্ঞানীরা জোর দিচ্ছেন মহাজাগতিক মেঘসমৃদ্ধ এলাকাগুলোতে পর্যবেক্ষণ বাড়ানোর দিকে।

আরও পড়ুন:
বয়স্ক ও শারীরিক অক্ষমদের জন্য রোবট আনছে হুন্দাই
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
২ লাখ ডলারে চেহারা ও কণ্ঠ বিক্রি করার সুযোগ

শেয়ার করুন

তিন মাস ইন্টারনেট না থাকলে কী হবে?

তিন মাস ইন্টারনেট না থাকলে কী হবে?

ইন্টারনেটবিহীন জীবন বাড়াতে পারে মনোসংযোগ। প্রতীকী ছবি

বর্তমান ইন্টারনেটের যুগে আমরা যেভাবে পড়ি তা অনেকটা বুফে খাওয়ার মতো। প্লেটে প্লেটে নানা সুস্বাদু খাবার, কিন্তু এর কোনোটির স্বাদই আমরা পুরোপুরি নিতে পারি না।

২০১৮ সালের গ্রীষ্মে টানা তিন মাস ইন্টারনেট থেকে দূরে থাকার সংকল্প চেপে বসে ব্রিটিশ লেখক জোহান হ্যারির মনে। নিতান্ত খেয়ালের বশে হলেও এই অভিজ্ঞতা তাকে নতুন এক পৃথিবীর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দিয়েছে।

স্বাভাবিকভাবেই অভ্যস্ত জীবনে হঠাৎ করে পরিবর্তন নিয়ে এলে মানুষ বেশ কিছু জটিলতার মুখোমুখি হয়। হ্যারির ক্ষেত্রে এই জটিলতা শুরু হয়ে যায় ইন্টারনেট ছেড়ে দেয়ার আগে- সিদ্ধান্ত নেয়ার পর থেকেই।

কারণ ইন্টারনেট ফিচারবিহীন একটি মোবাইল ফোন খুঁজে বের করতেই তাকে বেশ বেগ পেতে হয়েছে। অবশেষে বোস্টনের এক দোকানি তাকে এমন একটি মোবাইল ফোন দেন যাতে ইন্টারনেটের গতি খুবই কম। দোকানি তাকে বললেন, ‘এই মোবাইল দিয়ে আপনি বড়জোর ইমেইল পড়তে পারবেন…।’

এ পর্যন্ত বলতেই হ্যারি দোকানিকে থামিয়ে দিয়ে বলেন, ‘ইমেইল তো ইন্টারনেটেরই অংশ। আমি তিন মাসের জন্য একদম অফলাইনে চলে যেতে চাই।’

হ্যারির পরিকল্পনা শুধু যে দোকানির বুঝতে সমস্যা হয়েছে তা নয়, হ্যারির বন্ধুরাও তাকে নিয়ে শুরুতে বিভ্রান্ত হয়েছেন।

‘চুরি যাওয়া মনোযোগ: কেন আপনি মনোযোগ দিতে পারেন না- এবং কীভাবে আমরা আরও গভীর চিন্তা করতে পারি’ শিরোনামে নতুন একটি বইয়ে হ্যারি এসব অভিজ্ঞতা বর্ণনা করেছেন। গত ২৫ জানুয়ারি বইটি প্রকাশিত হয়েছে।

বইয়ে হ্যারি লিখেছেন, ‘শুরুতে আমার পরিকল্পনা অন্যদের কাছে এতটাই উদ্ভট মনে হয়েছিল যে বারবার তাদেরকে বিষয়টি ব্যাখ্যা করতে হয়েছে।’

সে যা-ই হোক, কোনো প্রতিবন্ধকতাই হ্যারির পরিকল্পনাকে বাধাগ্রস্ত করতে পারেনি। কারণ ইন্টারনেটময় জীবন থেকে যেভাবেই হোক কিছুদিনের জন্য তিনি মুক্তি চাইছিলেন।

গবেষণা সংস্থা ডিএসকাউট-এর তথ্য অনুযায়ী, প্রতিদিন গড়ে একজন মানুষ অন্তত ৩ ঘণ্টা ১৫ মিনিট সময় ইন্টারনেটে ব্যয় করেন। আর প্রতিদিন গড়ে আমরা ২ হাজার ৬১৭ বার মোবাইলের টাচস্ক্রিন স্পর্শ করি। এই অবিরাম সংযোগ আমাদের জীবন উন্নত করার বদলে বরং খারাপের দিকেই নিয়ে যাচ্ছে- এমনটাই মত গবেষকদের।

ইউনিভার্সিটি অফ ক্যালিফোর্নিয়ার গবেষকদের মতে, ইন্টারনেটের ওপর অতিমাত্রায় নির্ভরশীলতা আমাদের মনোযোগের ব্যাপ্তিকে অনেকাংশে কমিয়ে দিচ্ছে। এর ফলে নির্দিষ্ট কোনো বিষয়ে বেশির ভাগ মানুষ সর্বোচ্চ দুই মিনিট ১১ সেকেন্ড টানা মনোযোগ ধরে রাখতে পারছেন।

ইমেইল আর মেসেঞ্জারের আওয়াজ কিংবা সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের নোটিফিকেশন আমাদের মনোসংযোগে ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে। যে বিষয় থেকে আমরা মনোযোগ হারাচ্ছি সেখানে ফিরে যেতে আমাদের অন্তত গড়ে ২৩ মিনিট সময় লাগছে।

পরিকল্পনা বাস্তবায়নের শুরুতেই ম্যাসাচুসেটসের প্রিন্সটাউনে ছোট্ট একটি আবাস ভাড়া নেন ৪২ বছরের হ্যারি। এই জায়গাটি ছিল একেবারেই সঙ্গীবিহীন। ছিল না কোনো চাকরির যন্ত্রণা কিংবা বাচ্চাকাচ্চাও।

তাই হ্যারির এমন বিচ্ছিন্ন জীবন কারও ওপর কোনো প্রভাব ফেলেনি। শেষ পর্যন্ত তিনি একটি মোবাইল ফোনের খোঁজ পান, যাতে কোনো ধরনের ইন্টারনেট সংযোগ ছিল না। এ ধরনের মোবাইল খুব বয়স্ক ব্যক্তিদের জন্য তৈরি হয়, জরুরি চিকিৎসার প্রয়োজনে যেন ব্যবহার করা যায়।

এক বন্ধু হ্যারিকে একটি ল্যাপটপ ধার দিয়েছিলেন, যার মধ্যে কোনো ওয়াইফাই সংযোগ ছিল না। ব্যাপারটা এমন যে, কোনো কারণে রাত ৩টার সময়ে ঘুম ভেঙে গেলে তিনি চাইলেও তখন ইন্টারনেটে প্রবেশ করতে পারবেন না।

তিন মাস ইন্টারনেট না থাকলে কী হবে?
তিন মাস ইন্টারনেটবিহীন কাটিয়েছেন ব্রিটিশ লেখক জোহান হ্যারি

ইন্টারনেটবিহীন জীবনের প্রথম সপ্তাহটি হ্যারির খুব বিক্ষিপ্ত আর ধোঁয়াশায় কেটেছিল। এ সময় তিনি মাঝে মাঝে স্থানীয় ক্যাফেতে বসে বই পড়েছেন, কখনও অপরিচিত ব্যক্তিদের সঙ্গে কথাবার্তা বলেছেন। আর বেশির ভাগ সময় কেটেছে নিজের চিন্তার ভেতরে ডুব দিয়ে। আরেকটি বিষয় তিনি অনুভব করেছেন তা হলো- নীরবতা! বছরের পর বছর এই নীরবতা তার জীবনে ছিল অনুপস্থিত।

হ্যারির মনে হলো, ইন্টারনেটসহ মোবাইল ফোন আর ল্যাপটপ আনাড়ি বাচ্চাদের মতো, সারাক্ষণ শুধু চিৎকার চেঁচামেচি করে। ইন্টারনেট বিচ্ছিন্ন অবস্থায় মনে হয়, বাচ্চাগুলোকে একজন প্রতিপালকের দায়িত্বে দেয়া হয়েছে। ফলে তাদের চিৎকার আর বমির দৃশ্য চোখে পড়ছে না।

কিছুটা উদ্বেগও অবশ্য কাজ করছিল হ্যারির মধ্যে। মনে হচ্ছিল, না জানি কোনো গুরুত্বপূর্ণ ইমেইল তিনি মিস করছেন কিংবা কোনো গুরুত্বপূর্ণ টুইট। কোনো গুরুত্বপূর্ণ লেখা হয়তো তার পড়ার অপেক্ষায় বসে আছে। এমনও কয়েক দিন গেছে, অবচেতনেই পকেটে থাকা মোবাইলে হাত চলে গেছে।

২০২১ সালে পিউ রিসার্চের এক জরিপ অনুযায়ী, আমেরিকার ৩১ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ নিরবচ্ছিন্নভাবে ইন্টারনেটের সঙ্গে যুক্ত থাকেন। ২০১৫ সালের জরিপে এই হারটি ছিল ২১ শতাংশ।

মজার ব্যপার হলো, ১৯৮৬ সালে একজন মানুষ টেলিভিশন, রেডিও এবং পড়াশোনার মধ্য দিয়ে এক দিনে গড়ে যে পরিমাণ তথ্যের মুখোমুখি হতেন তা ৪০টি সংবাদপত্রের সমপরিমাণ। তবে ২০০৭ সালের হিসাবে একজন মানুষ গড়ে প্রতিদিন ১৭৪টি পত্রিকার সমান তথ্যের মুখোমুখি হতেন। অর্থাৎ প্রতি আড়াই বছরে দ্বিগুণ পরিমাণ তথ্যের মুখোমুখি হয়েছে মানুষ। চমকপ্রদ এই তথ্যটি ইউনিভার্সিটি অফ সাউদার্ন ক্যালিফোর্নিয়ার অধ্যাপক মার্টিন হিলবার্টের।

সেই হিসাবে আজকের দিনের মানুষ গড়ে ৭০০ পত্রিকার সমান তথ্যের মুখোমুখি হচ্ছেন প্রতিদিন।

হিলবার্টের মতে, কোনো জৈবিক মস্তিষ্কের জন্য এক দিনে এ পরিমাণ তথ্যের মুখোমুখি হওয়া একটু বেশিই হয়ে যায়। এর ফলে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে মানুষ শুধু কোনো বিষয়বস্তুর সারমর্মটুকুতে চোখ বুলায়। তথ্যের আধিক্যের জন্যই টুইট করা শিরোনামের ৭০ শতাংশই অপঠিত থেকে যায়। এমনকি যারা এগুলোকে রিটুইট করেন, তারাও ভেতরের খবরটুকু পড়ে দেখেন না।

বর্তমান ইন্টারনেট যুগে আমরা যেভাবে পড়ি তা অনেকটা বুফে খাওয়ার মতো। প্লেটে প্লেটে নানা সুস্বাদু খাবার, কিন্তু এর কোনোটির স্বাদই আমরা পুরোপুরি নিতে পারি না।

এর ফলে মানুষের বই পড়ার অভ্যাসও ধীরে ধীরে কমে যাচ্ছে। ১৯৯২ সালের হিসাবে শুধু আনন্দের জন্য বছরে অন্তত একটি বই পড়তেন আমেরিকায় এমন মানুষের সংখ্যা ছিল প্রায় ৬১ শতাংশ। ২০১৭ সালের হিসেবে এই সংখ্যাটি ৫৩ শতাংশে নেমে এসেছে।

তা ছাড়া ২০০৩ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে আমেরিকানদের প্রাত্যহিক বই পড়ার সময় ২৮ মিনিট থেকে কমে ১৬ মিনিটে এসে ঠেকেছে।

২০১৮ সালের মধ্যে অবসরে গেম খেলা কিংবা কম্পিউটার ব্যবহারের সময় বেড়ে হয়েছে প্রতিদিন প্রায় ২৮ মিনিট।

হ্যারি লিখেছেন, ‘বই পড়া মানুষের জীবনে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এই অভ্যাস মানসিক চাপ কমানোর পাশাপাশি জীবনকেও দীর্ঘায়িত করতে পারে। প্রতিদিন ৩০ মিনিট বই পড়া মানুষের আয়ুষ্কাল অন্তত দুই বছর বাড়িয়ে দিতে সক্ষম।’ তা ছাড়া এই বিষয়টি কোনো একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে মনোযোগী হওয়ার প্রশিক্ষণও দেয় মানুষকে।

হ্যারিকে নরওয়ের গবেষক অ্যান ম্যাঙ্গেন বলেছিলেন, ‘টাচস্ক্রিনে আমরা শুধু দেখি আর সারাংশে মনোযোগ দিই। অনেকটা চেরি ফল কুড়ানোর মতো। মানের চেয়ে পরিমাণকেই অগ্রাধিকার দিই।’

ইন্টারনেট বিচ্ছিন্নতার শুরুর দিকেও এ ধরনের মানসিকতায় আটকে ছিলেন হ্যারি। তিনি পাগলের মতো চার্লস ডিকেন্সের বিষয়ে কোনো উদ্দেশ্য ছাড়াই পড়তে শুরু করেছিলেন।

তবে সেই তড়িঘড়ি অবস্থা থেকে হ্যারি শিগগিরই বেরিয়ে আসেন। প্রতিদিন সকালে তিনি তিনটি পত্রিকা কিনতেন এবং পড়তেন। পরবর্তী ঘটনাপ্রবাহ জানার জন্য তাকে পরের দিন সকাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হতো।

হ্যারির বিচ্ছিন্ন সময়ে ২০১৮ সালের জুলাইয়ে যুক্তরাষ্ট্রের ম্যারিল্যান্ডের একটি পত্রিকা অফিসে পাঁচজনকে গুলি করে হত্যা করেন এক বন্দুকধারী। অন্য সময় হলে এই খবরটি সবার আগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেই পেতেন হ্যারি। বন্ধুদের সঙ্গে চ্যাটিং করে ঘটনার আদ্যোপান্ত জেনে নিতেন। তবে আলোচিত সেই খবরটি পরদিন সকালে পেয়েছিলেন তিনি।

এ বিষয়ে হ্যারি লিখেছেন, ‘আমার যা জানার প্রয়োজন ছিল তা একটি মৃত গাছে (পত্রিকা) মাত্র ১০ মিনিট পড়েই জেনে গেলাম।’

সময় গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে হ্যারির উপলব্ধি হলো, তার জীবনে ইন্টারনেটের প্রয়োজন নেই বললেই চলে। ছয় বন্ধুর নম্বর তার ফোনে সেভ করা ছিল, যাতে জরুরি প্রয়োজনে যোগাযোগ করা যায়। আর জরুরি চিকিৎসার প্রয়োজন হলে তিনি ৯১১ নম্বরে ফোন করতে পারতেন।

এ ছাড়া কোনো বিষয়ে আগ্রহ হলে তিনি স্থানীয় লাইব্রেরিতে গিয়ে অনুসন্ধান করতেন। পরদিনের আবহাওয়ার খবর জানতে চাইলে তিনি শহরতলিতে আড্ডারত মানুষের কাছেই জেনে নিতেন।

ইন্টারনেট-বিচ্ছিন্ন অবস্থায় হ্যারি সবচেয়ে বেশি যা মিস করেছেন তা হলো, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম।

২০১৮ সালে আগস্টের শেষ সপ্তাহে তিন মাসের ইন্টারনেট বিচ্ছিন্নতা শেষ করে আবারও বাকি পৃথিবীর সঙ্গে যুক্ত হন হ্যারি। তিনি ভেবেছিলেন, এ সময়ের মধ্যে তার ইমেইল হয়তো উপচে পড়ছে কিংবা বন্ধুবান্ধব ও পরিচিতরা তাকে হন্যে হয়ে খুঁজছে। যদিও প্রত্যেক ইমেইলের জন্য স্বয়ংক্রিয় একটি উত্তর তিনি সেট করে রেখেছিলেন। যেখানে বলা হয়েছিল, পুরো গ্রীষ্মকাল তিনি যোগাযোগের বাইরে থাকবেন।

যা ভেবেছিলেন, তার কিছুই হয়নি শেষ পর্যন্ত। বলা যায়, ওই সময়টিতে কেউই তার খোঁজ নেননি। ইমেইল আর ইনবক্সে তিন মাসের যত বার্তা ছিল, তা দুয়েক ঘণ্টার মধ্যেই পড়ে শেষ করে ফেলেন তিনি।

হ্যারি লিখেছেন, ‘পৃথিবী আমার অনুপস্থিতি খুব সহজেই মেনে নিয়েছে!’

ইন্টারনেট বিচ্ছিন্নতার অভিজ্ঞতা নিয়ে আজকের দিনে হ্যারি পুরোপুরি বদলে গেছেন, বিষয়টি এমন নয়। তবে এটা ঠিক, তিনি নিজের মনোযোগকে ইন্টারনেট বিনোদনে ভাসিয়ে দিতে এখন দ্বিতীয়বার ভাবছেন।

আরও পড়ুন:
বয়স্ক ও শারীরিক অক্ষমদের জন্য রোবট আনছে হুন্দাই
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
২ লাখ ডলারে চেহারা ও কণ্ঠ বিক্রি করার সুযোগ

শেয়ার করুন

প্রাচীন প্রবাল প্রাচীরের সন্ধান পেল ইউনেসকো

প্রাচীন প্রবাল প্রাচীরের সন্ধান পেল ইউনেসকো

নতুন আবিষ্কৃত প্রবাল প্রাচীর থেকে নমুনা সংগ্রহ করছেন একজন গবেষক। ছবি: সংগৃহীত

সমুদ্রের উপকূলের কাছে যে গভীরতাটি ‘টোয়ালাইট জোন’ নামে পরিচিত, ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়ার তাহিতি দ্বীপের তেমন একটি এলাকায় ডাইভিং অনুসন্ধানের সময় নভেম্বর মাসে প্রবাল প্রাচীরটির অবস্থান জানা যায়।

প্রবাল প্রাচীর হলো সমুদ্রের তলে সবচেয়ে হুমকিতে থাকা বাস্তুসংস্থান। অথচ সমুদ্রের প্রাণী বৈচিত্র্যের ২৫ শতাংশের বাস এই প্রবাল প্রাচীরে। সমুদের দূষণ ও তাপমাত্রা বৃদ্ধির কারণে কার্বন ডাই-অক্সাইডের ইমিশন ডিসলভিং রসায়নই বদলে দিচ্ছে। তাই বিশ্বের পরিবেশবাদীরা ও জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থা সমুদ্রের তলদেশের প্রবাল প্রাচীর রক্ষায় সোচ্চার।

এবার বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়ার তাহিতি উপকূলে ৩০ মিটার গভীরে এক দীর্ঘ ও প্রাচীন প্রবাল প্রাচীরের সন্ধান পেয়েছে জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (ইউনেসকোর) সাগরতলের অনুসন্ধানকারী দল।

সমুদ্রের উপকূলের কাছে যে গভীরতাটি ‘টোয়ালাইট জোন’ নামে পরিচিত, ফ্রেঞ্চ পলিনেশিয়ার তাহিতি দ্বীপের তেমন একটি এলাকায় ডাইভিং অনুসন্ধানের সময় নভেম্বর মাসে প্রবাল প্রাচীরটির অবস্থান জানা যায়। পুরো অভিযানটি ‘সিবেড ২০৩০ প্রজেক্ট’-এর অংশ।

ইউনেসকো ইতিমধ্যে জানিয়েছে, এখন পর্যন্ত সমুদ্রের এত গভীরে খুঁজে পাওয়া সবচেয়ে বড় প্রবাল প্রাচীর এটিই।

সংস্থাটির গবেষক ড. জুলিয়ান বারবাইরির মতে, হয়তো এমন বাসস্থান আরও অনেক আছে, যার সম্পর্কে আমরা এখনও জানি না। তবে বিশ্বব্যাপী প্রবাল প্রাচীরগুলোকে রক্ষার জন্য তাদের মানচিত্রের আওতায় আনতে হবে।

ইউনেসকোর ডিরেক্টর জেনারেল অউদ্রে আজউলেয় এই আবিষ্কারকে অবিশ্বাস্য বলছেন।

ফরাসী সমুদ্রতলের আলোকচিত্রী আলেক্সিস রোসেনফেল্ড বলেছেন, যতদূর চোখ যায় এই গোলাপের আকৃতির জাদুকরী এ প্রবাল প্রাচীর ততদূরই দেখা যায়। এটি অনেকটা শিল্পকলার মতো।

প্রফেসর মারি রবার্টস, এডেনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের লিডিং মেরিন সায়েন্টিস্ট বলেছেন, ‌‘এই আবিষ্কারেই স্পষ্ট হয়, আমরা সমুদ্রের বিষয়ে কত কম জানি।

‘এত দিন ধরে আমরা ভেবেছিলাম এই প্রবাল প্রাচীরগুলো গ্রীষ্মমণ্ডলীয় এলাকার অগভীর সমুদ্র উপকূলে হয়ে থাকে। কারণ গভীর জলের চেয়ে অগভীর জল দ্রুত উষ্ণ হয়। এ ছাড়া প্রবালের গায়ে লেগে থাকা শৈবালের আলো প্রয়োজন। কিন্তু সমুদ্রের পানির তাপমাত্রা বৃদ্ধির ফলে গভীর সমুদ্রই ভবিষ্যৎ প্রবালের আশ্রয়স্থল। তাই এই স্থানগুলোর ম্যাপিং করতে, তাদের পরিবেশগত ভূমিকা বুঝতে এবং ভবিষ্যতে প্রবালগুলো রক্ষায় আমাদের কাজ করতে হবে।’

তবে অতিরিক্ত গভীরতায় থাকায় প্রবাল প্রাচীরটি বেশ অক্ষতই আছে বলে মনে করা হচ্ছে। আগামী মাসে সেখানে আরও অনুসন্ধান করা হবে।

আরও পড়ুন:
বয়স্ক ও শারীরিক অক্ষমদের জন্য রোবট আনছে হুন্দাই
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
২ লাখ ডলারে চেহারা ও কণ্ঠ বিক্রি করার সুযোগ

শেয়ার করুন

ভারতে বিরল প্রজাতির কচ্ছপের পিঠে জিপিএস ট্রান্সমিটার

ভারতে বিরল প্রজাতির কচ্ছপের পিঠে জিপিএস ট্রান্সমিটার

টানা দু'বছর পরীক্ষা-নিরীক্ষার জিপিএস ট্র্যাকিং লাগিয়ে নদীতে ছাড়া হলো কচ্ছপগুলোকে। ছবি: সংগৃহীত

বাটাগুর বাসকার বাসস্থান কেমন? বংশবিস্তার কেমন করে হয়, কেমন পরিবেশ ভালোবাসে? কীভাবেইবা মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যায়? এসব তথ্য জানতে বাটাগুর বাসকা কচ্ছপের শরীরে জিপিএস ট্রান্সমিটার বসানো হয়েছে।

ভারতের সুন্দরবনে বিরল প্রজাতির কচ্ছপ বাটাগুর বাসকার জীবনচক্র জানতে প্রথমবারের মতো পূর্ণবয়স্ক ১০টি কচ্ছপের শরীরে জিপিএস ট্রান্সমিটার বসিয়ে নদীতে ছেড়ে দেয়া হয়েছে। তাদের প্রতিদিনের জীবনযাত্রার খুঁটিনাটি জানতে এই উদ্যোগ নিয়েছে সুন্দরবন বাঘ প্রকল্পের কর্মকর্তারা।

বাঘ প্রকল্পের ডেপুটি ডিরেক্টর জোন্স জাস্টিন বলেন, 'বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতির বাটাগুর বাসকা কচ্ছপের সফল প্রজনন ইতিমধ্যে আমরা করতে সক্ষম হয়েছি ।

তবে এদের বাসস্থান কেমন? বংশবিস্তার কেমন করে হয়, কেমন পরিবেশ ভালোবাসে? কীভাবেইবা মৃত্যুর দিকে এগিয়ে যায়? এসব তথ্য জানতে বাটাগুর বাসকা কচ্ছপের শরীরে জিপিএস ট্রান্সমিটার বসানো হয়েছে।'

বুধবারের এই বিশেষ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাঘ প্রকল্পের ডিরেক্টর তাপস দাস, ডেপুটি ডিরেক্টর জাস্টিন জোন্স এবং টারটেল সারভাইভাল অ্যালায়েন্স প্রোগ্রামের কর্মীরা।

এদিন সুন্দরবনের বিভিন্ন নদীতে ছাড়া হয় ১২টি পূর্ণ বয়স্ক এবং ৩৭০টি বাচ্চা কচ্ছপ। প্রথমে কচ্ছপগুলোকে সজনেখালি ম্যানগ্রোভ সেন্টারসহ অন্যান্য ক্যাম্পের বিশেষ পুকুরে রাখা হয়েছিল। সেখানে কচ্ছপগুলো যাতে প্রকৃতির সঙ্গে মানিয়ে নিতে পারে, সে জন্য পুকুরে জোয়ারভাটার জল ঢোকা এবং বেরোনর ব্যবস্থা ছিল।

টানা দুই বছর পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর আমেরিকা থেকে আনা জিপিএস ট্র্যাকিং মেশিন লাগিয়ে নদীতে ছাড়া হলো কচ্ছপগুলোকে।

বিগত ৯ বছর বাটাগুর বাসকা কচ্ছপের প্রজনন করিয়েছেন সুন্দরবন বাঘ প্রকল্পের কর্মীরা। ৩টি পুরুষ ও ৭টি নারী কচ্ছপ নিয়ে শুরু হয় প্রথম পর্বের প্রজনন। আগেও প্রজনন করিয়ে নদীতে ছাড়া হয় বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতির এই কচ্ছপ কিন্তু জিপিএস না থাকায় তাদের জীবনযাত্রা সম্পর্কে কিছুই জানা যায়নি।

তাই এবার পরিকল্পনা করে জিপিএস ট্রান্সমিটার লাগানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয় বলে জানিয়েছেন বন দপ্তরের কর্মকর্তারা।

এই প্রজাতির কচ্ছপ মূলত সুন্দরবনের বঙ্গোপসাগর এবং ওড়িশা উপকূলে বেশি দেখতে পাওয়া যায়। কিন্তু নানা কারণে তা ক্রমেই বিলুপ্তির পথে। সে জন্য বন দপ্তর বাটাগুর বাসকা কচ্ছপের প্রজনন বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেয় এবং তা সফলভাবে এগিয়ে চলেছে। সামনের দিনগুলোতে আরও বাটাগুর বাসকা প্রজাতির কচ্ছপ নদীতে ছাড়া হবে বলে জানান বন দপ্তরের কর্মকর্তারা।

আরও পড়ুন:
বয়স্ক ও শারীরিক অক্ষমদের জন্য রোবট আনছে হুন্দাই
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
২ লাখ ডলারে চেহারা ও কণ্ঠ বিক্রি করার সুযোগ

শেয়ার করুন

নতুন প্রজাতির মাকড়সা খুঁজে পেলেন থাই ইউটিউবার

নতুন প্রজাতির মাকড়সা খুঁজে পেলেন থাই ইউটিউবার

থাই ইউটিউবার খুঁজে পেলেন নতুন প্রজাতির মাকড়শা

বন্যজীবন নিয়ে আগ্রহী ইউটিউবার জোচো সিপ্পায়াত, যার কি না ২.৫ মিলিয়ন ফলোয়ার রয়েছে ইউটিউবে। দেশটির উত্তর-পশ্চিমের তাক প্রদেশের মুয়েআং তাক জেলায় তার বসবাস।

আগে দেখা যায়নি এমন এক মাকড়সা পাওয়া গেছে থাইল্যান্ডে। তবে কোনো প্রাণীবিদ বা বন্যপ্রাণী বিশেষজ্ঞ নন, এই মাকড়সা খুঁজে পেয়েছেন দেশটির একজন ইউটিউবার।

খন কায়েন বিশ্ববিদ্যালয়ের এন্টোমলজি ও প্ল্যান্ট প্যাথোলজি বিভাগের গবেষক চমফুফুয়াং বলেন, এই মাকড়সাগুলো সত্যিই অসাধারণ, এখন পর্যন্ত খুঁজে পাওয়া সব মাকড়সার মধ্যে এটাই প্রথম যে তার বাস্তুসংস্থান বাঁশনির্ভর।

বন্যজীবন নিয়ে আগ্রহী ইউটিউবার জোচো সিপ্পায়াত, যার কি না ২.৫ মিলিয়ন ফলোয়ার রয়েছে ইউটিউবে। দেশটির উত্তর-পশ্চিমের তাক প্রদেশের মুয়েআং তাক জেলায় তার বসবাস।

সেখানেই এক জঙ্গলে ভ্রমণের সময় তিনি এই মাকড়সাটি দেখতে পান। তখনই তার সন্দেহ হয় এটি নতুন প্রজাতির মাকড়শা। কারণ এ ধরনের মাকড়সা তিনি আগে দেখেননি।

জীববৈচিত্র্য রক্ষার জন্য প্রজাতিগুলো ও তাদের বাসস্থান সম্পর্কে মানুষকে ধারণা দিতে হবে। এরপরে বনাঞ্চলগুলো অবশ্যই বন্যপ্রাণীর জন্য রক্ষা করতে হবে।

তৎক্ষণাৎ সিপ্পায়াত কায়েন বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক চমফুফুয়াংকে ই-মেইলে মাকড়সার ছবি পাঠান। মাকড়সার ছবি পেয়েই চমফুফুয়াং বুঝতে পারেন মাকড়সাটি নতুন কোনো প্রজাতির কিন্তু তা নিশ্চিতের জন্য মাঠপর্যায়ে বিষয়টি অনুসন্ধানের দরকার ছিল।

পরবর্তীতে গবেষক চমফুফুয়াং এই বিরল মাকড়সার বিষয়ে নিশ্চিত হন। এর বৈজ্ঞানিক নাম রাখা হয় taksin bambus । অষ্টাদশ শতকের বিখ্যাত থাই রাজা তাকসিনের নামানুসারে এর নামকরণ।

সাধারণত মাকড়সাদের জঙ্গলের নিচে বা গাছে বাস। এই প্রথম কোনো মাকড়সা পাওয়া গেল যে বাঁশের মাঝখানের ফাপা স্থানে বসবাস করে। তবে গবেষকদের মতে, বাঁশের ভেতরের আর্দ্রতার জন্য এটি এই ধরনের মাকড়সার বসবাসের জন্য সুবিধাজনক।

তবে এই মাকড়সার পক্ষে বাঁশ ফুটো করে ফাপা স্থানে প্রবেশ করা সম্ভব হয় না। সে ক্ষেত্রে তাকে প্রকৃতির অন্যান্য বিষয়ের ওপর নির্ভর করতে হয়। বাঁশগাছ কোনো কারণে রোগাক্রান্ত হয়ে ফাটল ধরলে কিংবা অন্য কোনো প্রাণী দ্বারা বাঁশে কোনো ফাটল সৃষ্টি হলে সে সেখানে প্রবেশ করে থাকা শুরু করে।

তবে এই মাকড়সা খুঁজে পাওয়ার ঘটনাতেই স্পষ্ট হয়, থাইল্যান্ডের জঙ্গলে আরও কত অজানা প্রাণী বসবাস করছে।

চমফুফুয়াং বলেন, ‘জীববৈচিত্র্য রক্ষার জন্য প্রজাতিগুলো ও তাদের বাসস্থান সম্পর্কে মানুষকে ধারণা দিতে হবে। এরপরে বনাঞ্চলগুলো অবশ্যই বন্যপ্রাণীর জন্য রক্ষা করতে হবে।’

তাকসিনাস ব্যামবোস নামের মাকড়সাকে নিয়ে করা গবেষণাপত্র জানুয়ারির ৪ তারিখে যুকেইসে প্রকাশিত হয়েছে।

আরও পড়ুন:
বয়স্ক ও শারীরিক অক্ষমদের জন্য রোবট আনছে হুন্দাই
কাব্য প্রতিভায় তাক লাগালো রোবট আই-দা
রোবট মাছে কেমো হবে নির্ভুল, থাকবে না পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া
সন্তান জন্ম দিতে পারা রোবট উদ্ভাবন
২ লাখ ডলারে চেহারা ও কণ্ঠ বিক্রি করার সুযোগ

শেয়ার করুন