× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
Formation of Stomach Maternal Stitches
hear-news
player
print-icon

টিউমার রেখে প্রসূতির পেট সেলাই, তদন্ত কমিটি গঠন

টিউমার-রেখে-প্রসূতির-পেট-সেলাই-তদন্ত-কমিটি-গঠন
প্রসূতির বাবা মাসুদ মিয়া বলেন, ‘এরই মধ্যে শুক্রবার রাতে হঠাৎ মেয়ের প্রসব বেদনা উঠলে তাকে ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। সিজারের পর টিউমার অপারেশনের ডাক্তার আর ক্লিনিকের লোককে অনুরোধ করেও অপারেশন করাইতে পারলাম না। আমি বলছিলাম সকালে টাকা দিয়া দিমু, তাও করল না। অপারেশন করতে তাগো কী ক্ষতি হইত?’

মানিকগঞ্জে টাকা না পেয়ে প্রসূতি মায়ের পেটের ভেতর টিউমার রেখে সেলাই করার ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

তদন্ত কমিটির সদস্যরা হলেন মানিকগঞ্জ সদর হাসপাতালের গাইনি বিশেষজ্ঞ রুমা আক্তার, মেডিক্যাল অফিসার তুষার হোসেন এবং সিভিল সার্জন অফিসের সিনিয়র মেডিক্যাল টেকনোলজিস্ট রফিকুল ইসলাম।

সোমবার বেলা ২টার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মানিকগঞ্জের সিভিল সার্জন (ভারপ্রাপ্ত) ডা. মো. লুৎফর রহমান।

তিনি বলেন, ‘মৌখিকভাবে ও গণমাধ্যমে বিষয়টি জানার পর তিন সদস্যদের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। আগামী সাত কার্যদিবসের মধ্যে তদন্ত কমিটিকে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে। তদন্ত অনুযায়ী ক্লিনিকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। ডাক্তারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থার জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে জানানো হবে।’

অভিযোগ উঠেছে, প্রসব বেদনা উঠলে শুক্রবার রাতে মানিকগঞ্জ শহরের হেলথ কেয়ার মেডিক্যাল সেন্টারে মেয়েকে ভর্তি করেন মোহাম্মদ মাসুদ মিয়া। পরে ক্লিনিকের ডাক্তারের পরামর্শে শুক্রবার রাত ২টার দিকে অন্তঃসত্ত্বা আফরোজা আক্তারের অপারেশন করেন শহরের ডক্টরস ক্লিনিকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ডা. খায়রুল হাসান এবং ডা. আশিকুর রহমান।

স্বজনরা জানান, সিজারের মাধ্যমে কন্যাসন্তানের জন্ম দেন আফরোজা। তবে সন্তান প্রসবের পর অপারেশনের টেবিলে পেটের ভেতর একটি টিউমার দেখতে পান চিকিৎসক। তিনি প্রসূতির বাবাকে ওই টিউমার অপারেশন করাতে বলেন। পরে মেয়ের টিউমার অপারেশন করতে অনুরোধ করলে চিকিৎসক ৩ হাজার টাকা দাবি করেন।

অভিযোগ উঠেছে, টাকা দিতে না পারায় অপারেশন করা হবে না বলে জানান চিকিৎসক। মেয়ের টিউমার অপারেশনের জন্য হেলথ কেয়ার মেডিক্যাল সেন্টার ক্লিনিকের ম্যানেজার মো. হাবিবুর রহমানকে অনুরোধ করেন প্রসূতির বাবা মাসুদ। তাতেও কোনো কাজ হয়নি। পেটের ভেতর টিউমার রেখেই সেলাই করে চলে যান চিকিৎসক।

প্রসূতি আফরোজা আক্তারের অভিযোগ, অপারেশন টেবিলে তার গায়ে হাত তুলেছেন এক নার্স। খারাপ আচরণ করেছেন চিকিৎসকরাও। অপারেশনের পরও পেট সেলাই না করে রেখেছিল প্রায় ১ ঘণ্টা। এরপর টিউমার রেখেই পেট সেলাই করে চলে যান।

তিনি বলেন, ‘পেটে অসহ্য ব্যথা করতেছে। শুয়ে-বসে থাকতে খুব কষ্ট হচ্ছে। চিকিৎসক আমার সঙ্গে এমন করল কেন? আমরা তাগো কী ক্ষতি করছিলাম? একবার সন্তানের জন্য পেৎ কাটতে হইল, আবার টিউমারের জন্য কাটতে হইব। মনে হয় ডাক্তাররা আমারে মাইরা ফালাইব। অপারেশনের মানুষ তো এমনেই অর্ধেক মরা।’

বাবা মাসুদ মিয়া বলেন, ‘অন্তঃসত্ত্বা হওয়ার আড়াই মাসের মধ্যে আল্ট্রা করে আফরোজা। তখন তার পেটে টিউমার ধরা পড়ে। সে টিউমারের জন্য ওষুধ খেতে শুরু করে। সময়-সুযোগমতো আপারেশন করাতে বলেছিল ডাক্তার।’

তিনি বলেন, ‘এরই মধ্যে শুক্রবার রাতে হঠাৎ মেয়ের প্রসব বেদনা উঠলে তাকে ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়। সিজারের পর টিউমার অপারেশনের ডাক্তার আর ক্লিনিকের লোককে অনুরোধ করেও অপারেশন করাইতে পারলাম না। আমি বলছিলাম সকালে টাকা দিয়া দিমু, তাও করল না। অপারেশন করতে তাগো কী ক্ষতি হইত?’

আফরোজার স্বামী নাঈম ইসলাম বলেন, ‘আমি বেসরকারি ওষুধ কোম্পানি ইনসেপটায় শ্রমিকের কাজ করি। সব সময় হাতে টাকা থাকে না। স্ত্রী অন্তঃসত্ত্বা হওয়ায় কষ্ট করে বিকাশে কিছু টাকা রাখছিলাম। সেই টাকাও কাজে লাগল না।’

তিনি বলেন, ‘টিউমার অপারেশনের জন্য আমি আর আমার শ্বশুর অনেক অনুরোধ করছি। কেউ আমাগো অনুরোধ রাখল না। আমার স্ত্রী এখন পেট ব্যথায় মরতেছে। ব্যথায় কান্না করতেছে। আমার স্ত্রীর কিছু হইলে ক্লিনিক আর ডাক্তারের নামে মামলা দিমু।’

হেলথ কেয়ার মেডিক্যাল সেন্টার ক্লিনিকের ম্যানেজার মো. হাবিবুর রহমান বলেন, ‘আমাদের ক্লিনিক কর্তৃপক্ষের কোনো অবহেলা নেই। আমরা তো ডাক্তারকে ফোন দিয়ে আনছি এবং অপারেশন করাইছি। টিউমার অপারেশনের জন্য ডাক্তারকে টাকাও দিয়েছি। ডাক্তার যদি অপারেশন না করে, তা হলে আমাদের কী করার।’

অভিযুক্ত ডাক্তার খায়রুল হাসান বলেন, ‘একটা অপারেশনের কথা ছিল। তাই একটা করছি। পরে টিউমারের জন্য আলাদা টাকার কথা বলি। টাকা দিতে না পারায় তাকে অপারেশন করানো হয় নাই। এ অপারেশন পরেও করাতে পারবে।’

আরও পড়ুন:
ওসির গাড়িতে হাসপাতালে প্রসূতি
প্রসূতির মৃত্যু, স্বজনদের হাসপাতাল ভাঙচুর
ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যু: চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে মামলা
‘ভুল চিকিৎসা’: লাশ নিয়ে ক্লিনিকের সামনে স্বজনদের অবস্থান
অনুমোদনবিহীন ক্লিনিকে সন্তানসহ প্রসূতির মৃত্যু, আটক ২

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The housewife was killed less than a week after the wedding

সপ্তাহ না যেতেই নববধূ ‘খুন’

সপ্তাহ না যেতেই নববধূ ‘খুন’ বিয়ের এক সপ্তাহের মধ্যেই খুন হলেন দিতি খাতুন। ছবি: সংগৃহীত
নালিতাবাড়ী থানার ওসি বছির আহমেদ বাদল বলেন, ‘ঘটনার তদন্ত চলছে। কী কারণে এ হত্যার ঘটনা ঘটেছে তা এখনও জানা যায়নি। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শেরপুর জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে বিয়ের এক সপ্তাহের মাথায় নববধূকে বাবার বাড়িতে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

নালিতাবাড়ী পৌর এলাকার কালিনগর মহল্লায় বুধবার রাত ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় জড়িতের অভিযোগে পুলিশ স্থানীয় রহুল আমিন নামে এক যুবক ও তার ভাবিকে গ্রেপ্তার করেছে। ২৫ বছরের রহুল মাদক সেবন করতেন বলে জানা গেছে।

১৮ বছরের দিতি খাতুন কালিনগর মহল্লার মুছা মিয়ার মেয়ে।

মেয়েকে হত্যার ঘটনায় বৃহস্পতিবার সকালে হত্যা মামলা করেন মুছা মিয়া।

নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করে নালিতাবাড়ী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বছির আহমেদ বাদল বলেন, ‘আসামিদের আজ দুপুরে আদালতে তোলা হবে।’

স্বজনদের বরাতে ওসি জানান, এক সপ্তাহ আগে গত বৃহস্পতিবার উপজেলার চেল্লাখালী সন্যাসীভিটা এলাকার খাইরুল ইসলামের সঙ্গে দিতির বিয়ে হয়। বিয়ে পর দিতিকে তার বাবার বাড়ি কালিনগর রেখে খাইরুল কর্মস্থল ঢাকায় চলে যান।

বুধবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে একই এলাকার রহুল আমিন তার ভাবি রাহেলাকে নিয়ে দিতিদের বাড়িতে যান। এ সময় রাহেলার ডাক শুনে দরজা খোলার সঙ্গে সঙ্গে রহুল দা দিয়ে দিতির মাথায় কুপিয়ে পালিয়ে যান।

পরে স্বজনরা তাকে উদ্ধার করে নালিতাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় চিকিৎসক ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠাতে পরামর্শ দেন। ময়মনসিংহ নেয়ার পথে রাত সাড়ে ১০টার দিকে নকলা উপজেলায় দিতির মৃত্যু হয়।

সপ্তাহ না যেতেই নববধূ ‘খুন’
গৃহবধূকে খুনের মামলায় গ্রেপ্তার রুহুল আমিন। ছবি: নিউজবাংলা

ওসি বলেন, ‘খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে রাহেলাকে আটক করে ও রহুল আমিনকে খুঁজতে থাকে। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে রহুল আমিন নিজেই ঘটনাস্থলে পুলিশের কাছে এসে হত্যার কথা স্বীকার করে।’

এ ঘটনায় দিতির মা মনোয়ারা বেগম জানান, রাতের খাওয়া শেষে তারা ঘুমাতে যাচ্ছিলেন। এ সময় রাহেলা এসে ঘরের দরজা খুলতে বলেন। দিতি দরজা খোলা মাত্রই রহুল তাকে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। পরে রাহেলাও চলে যায়। তখন পুলিশে খবর দেয়া হয়।

তিনি বলেন, ‘কী কারণে তারা আমার মেয়েডারে মারলো আমরা জানি না। আমার মেয়ের খুনিদের বিচার চাই।’

এদিকে রাতেই ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন নালিতাবাড়ী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার আফরোজা নাজনীন ও ওসি বাদল।

ওসি বছির আহমেদ বাদল বলেন, ‘ঘটনার তদন্ত চলছে। কী কারণে এ হত্যার ঘটনা ঘটেছে তা এখনও জানা যায়নি। তবে দ্রুতই আমরা আসল ঘটনা উদ্ধার করতে পারব।

‘মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য শেরপুর জেলা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় এখনও কোনো মামলা হয়নি।’

আরও পড়ুন:
ছোট ভাইকে খুনের কথা বলে যুবকের আত্মসমর্পণ
জমি নিয়ে বিরোধে ভাইকে ‘খুন’
‘বন্ধুর ছুরিকাঘাতে’ কলেজছাত্র খুন
কুষ্টিয়ায় ২০ দিনে ৯ খুন
ভাটারায় দুর্বৃত্তের ছুরিকাঘাতে তরুণ খুন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Voting has been suspended at a center in Vidyanandapur the winner of Andharmani

আন্ধারমানিক ইউনিয়নে বিজয়ী স্বতন্ত্র, বিদ্যানন্দপুরেও এগিয়ে স্বতন্ত্রপ্রার্থী

আন্ধারমানিক ইউনিয়নে বিজয়ী স্বতন্ত্র, বিদ্যানন্দপুরেও এগিয়ে স্বতন্ত্রপ্রার্থী
মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম জানান, ভোটের বেসরকারি ফলাফল অনুযায়ী আন্ধারমানিক ইউনিয়ন পরিষদের স্বতন্ত্র প্রার্থী চশমা প্রতীকের নাসির উদ্দিন খোকন ৪২১০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার বিপরীতে নৌকা প্রতীকের আলাউদ্দিন কবিরাজ ৩৬০১ ভোট পেয়েছেন।

বরিশালের আন্ধারমানিক ইউনিয়নে বিজয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী। বিদ্যানন্দপুরেও এগিয়ে আছে স্বতন্ত্র প্রার্থী। তবে বিদ্যানন্দপুরের একটি কেন্দ্রে ৮৯ জনের ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) আঙুলের ছাপ মিল না হওয়ায় ওই কেন্দ্রের ভোটগ্রহণ স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। স্থগিত কেন্দ্রের ভোট কবে নাগাদ হবে সে সিদ্ধান্ত এখনও নেয়া হয়নি।

জেলার মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলায় আন্ধারমানিক ও বিদ্যানন্দপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের এ ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে বুধবার।

মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা জহিরুল ইসলাম বুধবার রাতে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ভোটের বেসরকারি ফলাফল অনুযায়ী আন্ধারমানিক ইউনিয়ন পরিষদের স্বতন্ত্র প্রার্থী চশমা প্রতীকের নাসির উদ্দিন খোকন ৪২১০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার বিপরীতে নৌকা প্রতীকের আলাউদ্দিন কবিরাজ ৩৬০১ ভোট পেয়েছেন।

এই ইউনিয়নে শতকরা ৫৭ দশমিক ৭৫ ভাগ ভোট পড়েছে।

বিদ্যানন্দপুর ইউনিয়ন পরিষদের একটি কেন্দ্রের ফলাফল স্থগিত হয়েছে। তবে সেখানে ৩২৫৮ ভোট পেয়ে এগিয়ে আছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের শাহে আলম মীর এবং দ্বিতীয় অবস্থানে ২৩৪২ ভোট পেয়ে নৌকা প্রতীকের জব্বার খান।

বিদ্যানন্দপুর ইউনিয়নে মোট ভোটার সংখ্যা নারী-পুরুষ মিলিয়ে বারো হাজার ৯৫ জন এবং আন্ধারমানিকে সতের হাজার ৫১৩ জন ভোটার রয়েছে।

আন্ধারমানিক ইউনিয়নে বিজয়ী স্বতন্ত্র প্রার্থীকে ১২ জুন দল থেকে বহিষ্কার করেছিলেন বরিশাল জেলা আওয়ামী লীগ। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক তালুকদার মোহাম্মদ ইউনুস বিষয়টি নিশ্চিত করেছিলেন।

এর আগে ১৩ জুন নির্বাচন কমিশন এই দুই ইউনিয়নে নির্বাচনী পরিবেশ না থাকায় ১৫ জুন নির্ধারিত ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়।

আরও পড়ুন:
এমপি বাহার কুমিল্লাতেই, ইসির নির্দেশ উপেক্ষা
ঢাকার দোহারসহ তিন পৌরসভায় ভোট ২৭ জুলাই
এবার সাতকানিয়ার এওচিয়া ইউপির ভোট স্থগিত
নির্বাচনি আচরণবিধি ভঙ্গ : তিন সাংসদকে সতর্ক করল ইসি
ভোটের প্রচারে বাধা: দুই ডিসিকে প্রতিবেদন দিতে ইসির নির্দেশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The floods in Sylhet destroyed 41000 houses

সিলেটে বন্যায় ভাঙল ৪১ হাজার ঘর

সিলেটে বন্যায় ভাঙল ৪১ হাজার ঘর সিলেটে চলমান বন্যায় ঘর হারিয়েছেন বাসিন্দারা। ছবি: নিউজবাংলা
সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী বলেন, ‘নগরে হাজারখানেক ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতির তালিকা আমরা প্রস্তুত করছি। এরপর তা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে এবং পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেয়া হবে।’

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা উপজেলার মোল্লাগাওয়ের জহুর আলীর মাটির ঘর বন্যায় একেবারে নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে। তলিয়ে গেছে মাটির বেড়া; উড়ে গেছে টিনের চালাও।

পানি নামার পর এখন ঘর মেরামতের কাজ করছেন জহুর।

তিনি বলেন, ‘একজন কিছু টিন দিয়ে সহায়তা করেছে। বাকি টাকা ধারকর্য করে জোগার করে ঘর মেরামত করছি। ঘর ঠিক না করলে তো খোলা আকাশের নিচে থাকতে হবে।’

চলমান বন্যায় ঘর হারিয়েছেন জহুরের মতো অনেকেই।

জেলা প্রশাসনের হিসাবে সিলেটের ১৩ উপজেলায় ৪০ হাজার ৯১টি কাঁচা ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে কোনোটি আংশিক, কোনোটি সম্পূর্ণ ক্ষতিগ্রস্ত।

সিলেট সিটি করপোরেশনের হিসাবে নগরে এই সংখ্যা প্রায় এক হাজার। সব মিলিয়ে সরকারি তথ্যেই জেলায় ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ির সংখ্যা ৪১ হাজারের বেশি।

জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান বলেন, ‘জেলার ক্ষতিগ্রস্ত ঘরবাড়ির তালিকা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর ঘরবাড়ি নির্মাণ ও মেরামতের জন্য প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দ চেয়ে মন্ত্রণালয়ে আবেদনও করা হয়েছে।

‘বন্যায় যারা ঘর হারিয়েছেন, তাদের ঘর সরকারি উদ্যোগে মেরামত করে দেয়া হবে।’

সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বিধায়ক রায় চৌধুরী বলেন, ‘নগরে হাজারখানেক ঘর ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ক্ষয়ক্ষতির তালিকা আমরা প্রস্তুত করছি। এরপর তা মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে এবং পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেয়া হবে।’

বন্যায় ঘর হারা সিলেট সদর উপজেলার শিবেরবাজার এলাকার লায়েক মিয়া বলেন, ‘সরকার থেকে কখন ঘর বানিয়ে দেয়া হবে আর আমরা কখন ঘরে উঠবে তার কোনো ঠিক-ঠিকানা নেই। তার আগে আমরা কোথায় থাকব? আমাদের তো থাকার কোনো জায়গা নেই এখন।’

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, সিলেট সিটি করপোরেশনসহ ১৩ উপজেলা ও ৫ পৌরসভা বন্যায় প্লাবিত হয়েছে। প্রায় ৩০ লাখ লোক পানিবন্দি ছিলেন। সবশেষ পাওয়া তথ্যের হিসাবে, জেলার ৬১৪টি আশ্রয়কেন্দ্রে ২ লাখ ৫২ হাজার ৭৮৪ জন আশ্রয় নিয়েছেন।

টানা কয়েক দিন কমার পর বুধবার থেকে আবার বাড়তে শুরু করেছে সুরমা-কুশিয়ারাসহ সিলেটের প্রধান নদ-নদীর পানি। বুধবার রাতে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বৃষ্টি হচ্ছে।

বৃষ্টি হচ্ছে সিলেটের উজানে ভারতের আসাম ও মেঘালয়েও। এতে জেলার বন্যা পরিস্থিতি আবারও অবনতির শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

আরও পড়ুন:
বন্যার কবলে পৌনে ৬ লাখ শিক্ষার্থী
আসামের বন্যাদুর্গতদের জন্য ২৫ লাখ রুপি দিলেন আমির খান
পানি নামার আগেই আবার বাড়ছে সুনামগঞ্জে
বন্যাদুর্গত এলাকায় কাটা রাস্তায় সেতু বা কালভার্ট নির্মাণের নির্দেশ
ভেসে গেছে বই, অনিশ্চিত পড়ালেখা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The statue was recovered in front of the toll plaza of Padma Bridge

পদ্মা সেতুর টোল প্লাজার সামনে থেকে প্রাচীন মূর্তি উদ্ধার

পদ্মা সেতুর টোল প্লাজার সামনে থেকে  
প্রাচীন মূর্তি উদ্ধার কলকাতা থেকে আসা গ্রীন লাইন পরিবহনের একটি বাস থেকে পুরাকীর্তিগুলো উদ্ধার করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা
শরীয়তপুরের পুলিশ সুপার এস এম আশরাফুজ্জামান। পুলিশ সুপার জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কলকাতা ছেড়ে আসা গ্রীন লাইনের একটি বাসে অভিযান চালিয়ে শত বছরের পুরোনো মূল্যবান ৩টি সিংহের মূর্তি উদ্ধার করা হয়। এ সময় কারুকাজ করা ১টি কলস, বিভিন্ন ধরনের পুরাকীর্তিসহ দুটি ভিডিও ক্যামেরাও উদ্ধার করা হয়।

পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের টোল প্লাজার সামনে থেকে ‘শত বছরের’ পুরোনো মূর্তিসহ বেশ কিছু প্রাচীন নিদর্শন জব্দ করেছে পুলিশ।

ভারতের কলকাতা থেকে আসা গ্রীন লাইন পরিবহনের একটি বাস থেকে বুধবার রাত ১টার দিকে এসব মালামাল উদ্ধার করে পদ্মা দক্ষিণ থানা পুলিশ।

এ সময় অবৈধভাবে মূল্যবান মূর্তি পরিবহনের দায়ে জসিম উদ্দিন নামের এক বাসযাত্রীকে আটক করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সকালে নিউজবাংলাকে তথ্য নিশ্চিত করেছেন শরীয়তপুরের পুলিশ সুপার এস এম আশরাফুজ্জামান।

পুলিশ সুপার জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কলকাতা ছেড়ে আসা গ্রীন লাইনের বাসটিতে অভিযান চালিয়ে শত বছরের পুরোনো মূল্যবান ৩টি সিংহের মূর্তি উদ্ধার করা হয়। এ সময় কারুকাজ করা ১টি কলস, বিভিন্ন ধরনের পুরাকীর্তিসহ দুটি ভিডিও ক্যামেরাও উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও জানান, এসব মূল্যবান পুরাকীর্তি পরিবহনের অভিযোগে জসিম উদ্দিনকে আটক করা হয়। এসব পণ্যের কোনো ধরনের বৈধ কাগজপত্র দেখাতে পারেননি তিনি। উদ্ধারকৃত মালামাল পদ্মা দক্ষিণ থানায় নিয়ে যায় পুলিশ।

এসপি আশরাফুজ্জামান বলেন, ‘মূর্তিগুলো কষ্টি পাথরের হয়ে থাকতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে, তবে পরীক্ষা শেষে এ বিষয়ে পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যাবে। ঘটনাটি গুরুত্বের সঙ্গে দেখা হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
পদ্মা সেতুর বিরোধিতাকারীদের বিচারের পক্ষে প্রাণিসম্পদমন্ত্রী
কোথা থেকে, কীভাবে মেটানো হলো সেতুর খরচ
পদ্মা সেতুর টাকাতেই উচ্চক্ষমতার বিদ্যুৎ সঞ্চালনের পিলার
যানবাহনের চাপ কম পদ্মার টোল প্লাজায়
ভাড়া কমিয়েও যাত্রী পাচ্ছে না লঞ্চ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Rituparnas brother dies of electrocution

ফুটবলার রিতুপর্ণার ভাইয়ের বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মৃত্যু

ফুটবলার রিতুপর্ণার ভাইয়ের বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মৃত্যু রিতুপর্ণা চাকমা ও তার ছোট ভাই পার্বন চাকমা। ছবি: নিউজবাংলা
রাঙামাটি কোতোয়ালি থানার ওসি কবির হোসেন বলেন, ‘বুধবার দুপুর ১২টার দিকে বাড়িতে বৈদ্যুতিক কাজ করতে গিয়ে পার্বন বিদ্যুতায়িত হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’

জাতীয় নারী দলের ফুটবলার রিতুপর্ণা চাকমার ছোট ভাই পার্বন চাকমা বিদ্যুৎস্পৃষ্টে মারা গেছেন।

রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালে বুধবার দুপুর ১টার দিকে মারা যান পার্বন।

১৭ বছরের পার্বন চাকমা কাপ্তাই কর্ণফুলী কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র ছিলেন। ছয় ভাইবোনদের মধ্যে পার্বনই একমাত্র ভাই। ছোটবেলায়ই তারা তাদের বাবাকে হারান।

নিউজবাংলাকে তথ্য নিশ্চিত করেছেন রাঙামাটি কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কবির হোসেন।

স্থানীয়দের বরাতে তিনি জানান, বুধবার দুপুর ১২টার দিকে বাড়িতে বৈদ্যুতিক কাজ করতে গিয়ে পার্বন বিদ্যুতায়িত হয়। পরে তাকে উদ্ধার করে রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক সৈকত আকবর (আরএমও)বলেন, ‘পার্বন চাকমাকে দুপুরে হাসপাতালে আনা হয়। হাসপাতালে পৌঁছার আগেই তার মৃত্যু হয়।’

ওসি কবির হোসেন বলেন, ‘আইনি প্রক্রিয়া শেষে পার্বনের মরদেহ পরিবারের অনুরোধে ময়নাতদন্ত ছাড়াই তাদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
দোকানের আগুন নেভাতে গিয়ে প্রাণ গেল চালকের
গরু বাঁচাতে গিয়ে মা-ছেলের মৃত্যু
বিদ্যুৎস্পৃষ্টে অটোরিকশা চালকের মৃত্যু
বিদ্যুৎস্পৃষ্টে শ্রমিকের মৃত্যু
কোটালীপাড়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে কৃষকের মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Jessore traders hoping to make a profit from the sacrifice

কোরবানিতে লাভের আশায় যশোরের ব্যবসায়ীরা

কোরবানিতে লাভের আশায় যশোরের ব্যবসায়ীরা আসন্ন কোরবানি ঈদ উপলক্ষে গরু মোটাতাজাকরণে ব্যস্ত পশু খামারিরা। ছবি: নিউজবাংলা
যশোর জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রাশেদুল হক বলেন, ‘যশোর জেলায় এবার কোরবানির চাহিদা মিটিয়ে গরু-ছাগল উদ্বৃত্ত থাকবে। ইতোমধ্যে কোরবানির পশুহাট শুরু হয়েছে।’

আসন্ন কোরবানি ঈদে যশোরে চাহিদার চেয়েও পশুর সরবরাহ বেশি বলে জানিয়েছে জেলা প্রাণীসম্পদ দপ্তর। এতে কোরবানির পরও জেলায় ৪ হাজারের বেশি পশু উদ্বৃত্ত থাকবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

চাহিদার চেয়ে যোগান বেশি হওয়ায় দাম নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন জেলার পশু খামারিরা। পশুখাদ্যের দাম বেশি হওয়ায় গরু মোটাতাজাকরণে তাদের ব্যয় বেড়েছে অনেক। সেই অনুযায়ী দাম না পেলে লোকসানের মুখে পড়তে হবে বলেও আশঙ্কা করছেন তারা।

যশোর জেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর জানিয়েছে, আসন্ন কোরবানি উপলক্ষে যশোর জেলায় গবাদি পশুর চাহিদা রয়েছে ৯১ হাজার ১৮৮টি। এর মধ্যে গরু ২৭ হাজার ৯৫৫টি, ছাগল ৬২ হাজার ৬৭৬টি ও ভেড়া ৫৫৭টি।

বিপরীতে কোরবানির জন্য প্রস্তুত রয়েছে ৯৫ হাজার ৭১০টি পশু। এর মধ্যে গরু ২৯ হাজার ১৭০, ছাগল ৬৫ হাজার ৯৮৩ এবং ভেড়া ৫৫৭টি। উদ্বৃত্ত পশুর সংখ্যা ৪ হাজার ৫২২টি। এর মধ্যে ১ হাজার ২১৫টি গরু আর ছাগল ৩ হাজার ৩০৭টি।

জেলা প্রাণিসম্পদ দপ্তর আরও জানিয়েছে, যশোরের ৮ উপজেলায় মোট ২১টি পশুহাট রয়েছে। কোরবানি উপলক্ষে এই হাটগুলোতে মোট ২৪টি মেডিক্যাল টিম কাজ করবে। রোগাক্রান্ত ও অসুস্থ পশু যেন হাটে বিক্রি না হয়, তার দেখভাল করবে এই টিমগুলো।

যশোর সদরের বাহাদুরপুর গ্রামের খামারি জহুরুল ইসলাম জানিয়েছেন, তিনি কোরবানির জন্য ৫টি গরু মোটাতাজাকরণ করেছেন। প্রতিদিন একটি গরুর পেছনে তার ব্যয় হচ্ছে ১৭০-২০০ টাকা।

গতবার চাহিদা অনুযায়ী পশু বিক্রি করতে পারেননি দাবি করে তিনি বলেন, ‘করোনা না থাকায় আশা করছি এবার ভাল দামে গরু বিক্রি করতে পারবো।’

কোরবানিতে লাভের আশায় যশোরের ব্যবসায়ীরা

অভয়নগর উপজেলার মশরহাটি গ্রামে রয়েছে পরশ অ্যাগ্রো লিমিটেডের ২০২টি গরু। কোরবানির পশুহাটে গরুগুলো বিক্রি করার জন্য প্রস্তুত করা হয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপক হাসানুজ্জামান বলেন, ‘আমরা বাণিজ্যিকভাবে গরু লালন-পালন করি। আমাদের খামারের সব গরু দেশি প্রজাতির। ক্রেতাদের পছন্দ হবার পর আমরা দরদাম করে গরু বিক্রি করব।’

খামারিরা জানিয়েছেন, গত দুই বছর করোনার মধ্যে কোরবানি ঈদ হয়েছে। ফলে লকডাউনসহ অর্থনৈতিক কারণে কোরবানি কম হয়েছে। পশু বিক্রি কম হওয়ায় খামারিদের লোকসানও গুণতে হয়েছে। এ বছর করোনামুক্ত ঈদ হওয়ায় তারা আশায় বুক বেঁধেছেন।

খামারিরা আরও জানান, অধিকাংশ খামারি নিজেদের গচ্ছিত ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র পুঁজি বিনিয়োগ করে কুরবানির পশু পালন করছেন। আবার অনেকের রয়েছে ব্যাংক ও এনজিওর ঋণ। চাহিদার উদ্বৃত্ত থাকায় দেশি পশুতেই এবার কোরবানি হবে। কিন্তু সেটির প্রভাব দামের উপরে পড়ে কিনা তা নিয়েও দুশ্চিন্তা রয়েছে।

এদিকে, পশুখাদ্যের দাম অনেক বেড়ে যাওয়ায় গরু ছাগল লালন পালনে খরচও অনেক বেড়েছে। ব্যাপারীরা ইতোমধ্যে বাড়ি বাড়ি গিয়ে গরু ছাগল দেখছেন। কিন্তু তারা দাম বলছেন চাহিদার তুলনায় কম। ফলে দাম নিয়ে শঙ্কা থাকলেও খামারিরা আশা করছেন, পুরোদমে হাট শুরু হলে ভাল দাম পাওয়া যাবে।

এ বিষয়ে যশোর জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. রাশেদুল হক বলেন, ‘যশোর জেলায় এবার কোরবানির চাহিদা মিটিয়ে গরু-ছাগল উদ্বৃত্ত থাকবে। ইতোমধ্যে কোরবানির পশুহাট শুরু হয়েছে। জেলার হাটগুলোর জন্য ২৪টি মেডিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে। সুস্থ ও সবল পশু ক্রয়-বিক্রয়ে সহযোগিতার জন্য এই টিমগুলো হাটে কাজ করছে। আমরা খামারিদের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছি। তাদের সুবিধা-অসুবিধা দেখভাল করছি।’

আরও পড়ুন:
‘নানা ভাই’কে পেতে গুনতে হবে ১০ লাখ টাকা
বরিশালের হা‌নি সিং, নাটোরের বস
কোরবানিতে চাহিদার চেয়ে বেশি পশু
এক বছরে আরও হৃষ্টপুষ্ট ‘রাসেল বস’
গোখাদ্যের দাম বৃদ্ধিতে লোকসানের শঙ্কায় খামারিরা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two people lost control of the covered van

কাভার্ড ভ্যান নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ২ পথচারী নিহত

কাভার্ড ভ্যান নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ২ পথচারী  নিহত  প্রতীকী ছবি
ভৈরব হাইওয়ে থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোজাম্মেল হোসেন বলেন, ‘উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের মাহমুদাবাদ গ্রামের নামাপাড়া বাজার এলাকায় দুটি কাভার্ড ভ্যান একটি আরেকটিকে অভারটেক গিয়ে একটি নিয়ন্ত্রণ হারায়। এতে ঘটনাস্থলেই দুজন পথচারী নিহত হন।’

নরসিংদীর রায়পুরা উপজেলায় কাভার্ড ভ্যান নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে দুই পথচারী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরও একজন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের মাহমুদাবাদ এলাকায় বৃহস্পতিবার ভোরে এ দুর্ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে হতাহতদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি, তবে নিহত দুজনই পুরুষ।

নিউজবাংলাকে তথ্য নিশ্চিত করেছেন ভৈরব হাইওয়ে থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোজাম্মেল হোসেন।

তিনি বলেন, ‘উপজেলার মুছাপুর ইউনিয়নের মাহমুদাবাদ গ্রামের নামাপাড়া বাজার এলাকায় দুটি কাভার্ড ভ্যান একটি আরেকটিকে অভারটেক গিয়ে একটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলে। এতে ঘটনাস্থলেই দুজন পুরুষ পথচারী নিহত হন। এ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে হাইওয়ে পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করে।’

ওসি আরও বলেন, ‘মরদেহ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। নিহতদের পরিচয় শনাক্তে কাজ করছে পুলিশ।’

আরও পড়ুন:
পিকআপ ভ্যানের ধাক্কায় চিকিৎসাধীন নারীর মৃত্যু
খিলগাঁও ফ্লাইওভারে গেল যুবকের প্রাণ
বিকল ট্রেন উদ্ধার, দেড় ঘণ্টা পর চালু সিলেটের রেলপথ
ট্রাকচাপায় অটোরিকশাযাত্রী মা-ছেলে নিহত
সিগন্যালবারে আঘাত লেগে ট্রেনযাত্রী নিহত

মন্তব্য

p
উপরে