× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য

বাংলাদেশ
Fakhrul wants resignation of state minister for information
hear-news
player
print-icon

তথ্য প্রতিমন্ত্রীর পদত্যাগ চান ফখরুল

তথ্য-প্রতিমন্ত্রীর-পদত্যাগ-চান-ফখরুল বক্তব্য রাখছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ফাইল ছবি
অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া যখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে, এমনকি যখন তিনি চিকিৎসা নিয়ে সরকারের প্রতিহিংসামূলক আচরণের শিকার, তখন তার পরিবারের নারী সদস্যকে নিয়ে এমন বক্তব্য দেশের নারী নেত্রীসহ সচেতন মহলের ঘৃণা কুড়িয়েছে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করেছেন ফখরুল ইসলাম।

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের পরিবারের সদস্যদের নিয়ে অশালীন বক্তব্য দেয়ায় তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের পদত্যাগ দাবি করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

সোমবার দলের সহদপ্তর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু স্বাক্ষরিত এক বিবৃতি পাঠিয়ে সংবাদমাধ্যমকে এ কথা জানান তিনি।

অনলাইনে একটি সাক্ষাৎকারে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, তার নাতনি জাইমা রহমানকে নিয়ে আপত্তিকর বক্তব্য দিয়ে সমালোচনায় পড়েন তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান।

বিষয়টি নিয়ে এরই মধ্যে প্রতিবাদ জানিয়েছেন দেশের জেন্ডার বিশেষজ্ঞ ও অধিকারকর্মীরা। তবে নিজের বক্তব্যে অনড় থাকার কথা জানিয়েছেন মুরাদ হাসান।

এমনকি সোমবার বিষয়টি নিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকেও প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়। সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের মুখে পড়ে ওবায়দুল কাদের বক্তব্যটি মুরাদ হাসানের ব্যক্তিগত বলে সাফাই গেয়েছেন। তবে তিনি বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করবেন বলে জানান।

সোমবার বিবৃতিতে মির্জা ফখরুল জাতীয় পতাকাধারী একজন ব্যক্তির এমন বক্তব্য তার মনোবৈকল্যের প্রকাশ বলে উল্লেখ করেছেন।

তিনি বলেন, ‘বিভিন্ন গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়া এমন বক্তব্য জাতিকে স্তম্ভিত করেছে।’

অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া যখন জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে, এমনকি যখন তিনি চিকিৎসা নিয়ে সরকারের প্রতিহিংসামূলক আচরণের শিকার, তখন তার পরিবারের নারী সদস্যকে নিয়ে এমন বক্তব্য দেশের নারী নেত্রীসহ সচেতন মহলের ঘৃণা কুড়িয়েছে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করেছেন ফখরুল ইসলাম।

বিএনপির এই নেতা অবিলম্বে সরকারের তথ্য প্রতিমন্ত্রীকে নারী ও বর্ণবিদ্বেষী বিকৃত মন্তব্য প্রত্যাহার করে জনসমক্ষে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান।

অন্যথায় ভবিষ্যতে এর দাঁতভাঙা জবাব দেয়া হবে বলেও বিবৃতিতে হুঁশিয়ারি জানিয়েছে বিএনপি।

আরও পড়ুন:
প্রতিমন্ত্রী মুরাদকে নিয়ে ক্ষুব্ধ ফারুকী
প্রতিমন্ত্রী মুরাদ ইস্যু প্রধানমন্ত্রীকে জানাবেন কাদের
মুরাদ এখনও কীভাবে প্রতিমন্ত্রী, প্রশ্ন নারীপক্ষের
প্রতিমন্ত্রীর মন্তব্যে সমালোচনার ঝড়, গায়ে মাখছেন না মুরাদ
মার্জিত ভাষা, শালীনতাবোধ জরুরি: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The BNP will continue to raise questions about the Padma Bridge

পদ্মা সেতু নিয়ে প্রশ্ন তুলেই যাবে বিএনপি

পদ্মা সেতু নিয়ে প্রশ্ন তুলেই যাবে বিএনপি পদ্মা সেতুর পরিকল্পনা নেয়ার সময় থেকে নানা দিক নিয়ে আওয়ামী লীগ সরকারের সমালোচনা করতে থাকে বিএনপি। ছবি: নিউজবাংলা
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা সমালোচনা করেছি এই সেতু নিয়ে যে দুর্নীতি হয়েছে, সেই দুর্নীতির বিষয়ে। আমাদের তো এখনও কনসার্ন যে, এই যে সেতুটা হলো, তার জন্য সামনে আরও কত টাকা গুনতে হবে এই দেশের জনগণকে।’

কানাডার আদালতে মামলা খারিজ হওয়ার পরও দেশের সবচেয়ে বড় সেতু প্রকল্পটির স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন তুলতেই থাকবে বিএনপি।

সুনির্দিষ্ট তথ্য-প্রমাণ না থাকলেও দলটির নেতারা দাবি করে আসছেন, এই সেতু নির্মাণে দুর্নীতি হয়েছে। যত টাকা ব্যয় হয়েছে, তার চেয়ে কম টাকায় করা সম্ভব ছিল।

এই ধারণার পক্ষে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য-উপাত্ত না দিলেও সেতু নির্মাণের প্রাথমিক বরাদ্দ ১০ হাজার ১৬২ কোটি টাকা ধরা হয়েছিল, সেটিই বিএনপির বক্তব্যের প্রধান উপজীব্য। শেষ পর্যন্ত সেতুটি নির্মিত হয়েছে ৩০ হাজার কোটি টাকার আশপাশে।

যখন নির্মাণ ব্যয় ১০ হাজার কোটি টাকা রেখে প্রাথমিক পরিকল্পনা করা হয়, তখন চার লেনের একটি সড়ক সেতু করার সিদ্ধান্ত হয়। পরে সিদ্ধান্ত পাল্টে স্টিলের দ্বিতল সেতু করা হয়, যাতে সড়ক সেতুর নিচ দিয়ে রেল চলাচলের ব্যবস্থা করা যায়।

জমি অধিগ্রহণের ক্ষেত্রে ক্ষতিপূরণের নীতিমালাও পাল্টানো হয়। জমির বাজারদরের তিন গুণ ক্ষতিপূরণ দেয়া হয় ক্ষতিগ্রস্তদের। নদীশাসনেও ধারণার চেয়ে বেশি খরচ করতে হয়।

‘পদ্মা সেতু কি কারও পৈতৃক সম্পত্তি? কারও নিজের জমিদারি? এটা তো জনগণের ট্যাক্সের টাকায় হয়েছে। তাহলে এই সেতুতে উঠবেন কি না এমন কথা আসছে কেন?’

শেষ পর্যন্ত নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে ৩০ হাজার ১৯৩ কোটি টাকা।

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমরা সমালোচনা করেছি এই সেতু নিয়ে যে দুর্নীতি হয়েছে, সেই দুর্নীতির বিষয়ে। আমাদের তো এখনও কনসার্ন যে, এই যে সেতুটা হলো, তার জন্য সামনে আরও কত টাকা গুনতে হবে এই দেশের জনগণকে।’

পদ্মা সেতু নিয়ে প্রশ্ন তুলেই যাবে বিএনপি

পদ্মা সেতু ইস্যুতে বেগম খালেদা জিয়া ও ড. ইউনূসকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বক্তব্য রাখার পরদিন বৃহস্পতিবার ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপির দলীয় কার্যালয়ে তার জবাব দেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। ছবি: নিউজবাংলা

সরকারি দলের নেতাদের নানা বক্তব্যের কথা উল্লেখ করে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘পদ্মা সেতু কি কারও পৈতৃক সম্পত্তি? কারও নিজের জমিদারি? এটা তো জনগণের ট্যাক্সের টাকায় হয়েছে। তাহলে এই সেতুতে উঠবেন কি না এমন কথা আসছে কেন?’

দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, ‘সেতু কি আপনার পারসোনাল অ্যাসেট? আপনি জিজ্ঞাসা করার কে? বলতে যদি হয়, এটা বলেন যে এই সেতু নির্মাণে কত টাকা পকেটে ঢুকিয়েছেন?’

সেতু উদ্বোধনের দিন বিএনপিকে আমন্ত্রণ জানানোর কথাও জানিয়েছেন সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তবে এই অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার কোনো ইচ্ছা যে দলটির নেই, সেটি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা ও ঢাকা মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক আমানউল্লাহ আমানের বক্তব্যেই স্পষ্ট। তিনি বলেন, ‘আপনারা সবাই নিশ্চয় জানেন, আগামী ২৬ মে আমরা ঢাকাসহ সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচি রেখেছি। আমাদের চেয়ারপারসনকে নিয়ে যে হুমকি দেয়া হয়েছে, সেটার প্রতিবাদেই এই বিক্ষোভ সমাবেশ। আমার মনে হয়, এই বিক্ষোভের ঘটনাতেই বিএনপির মনোভাব স্পষ্টতর।’

পদ্মা সেতু নিয়ে প্রশ্ন তুলেই যাবে বিএনপি

বিএনপির আক্রমণ ছিল শুরু থেকেই

এই সেতুর পরিকল্পনা নেয়ার সময় থেকেই নানা দিক থেকে সরকারের সমালোচনা করতে থাকে বিএনপি। বিশ্বব্যাংক সেতুর পরামর্শক নিয়োগে দুর্নীতিচেষ্টার অভিযোগ আনার পর দলটি সরকারের পদত্যাগ দাবি করে।

২০১৩ সালে বিশ্বব্যাংক যখন এই সেতু থেকে নিজেদের দূরে সরিয়ে ফেলে, তখন বিএনপির বক্তব্য ছিল, সরকার দুর্নীতি করতে গিয়ে দেশের সম্মান ডুবিয়েছে।

বিশ্বব্যাংক সরে যাওয়ার পর সরকার যখন নিজ অর্থে সেতু নির্মাণের পরিকল্পনা নেয়, তখন বিএনপির পক্ষ থেকে বক্তব্য আসে এমন যে, দুর্নীতি করতে পারবে না বলে বিদেশি অর্থায়ন নিতে চায় না সরকার। আর এত বড় প্রকল্প নিজ অর্থে করলে অন্য উন্নয়ন প্রকল্পে বরাদ্দ কমে যাবে।

নানা জটিলতায় সেতু নির্মাণে পরিকল্পনার চেয়ে যখন বেশি সময় লাগছিল, তখন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার করা একটি উক্তি নিয়ে সম্প্রতি প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

খালেদা জিয়া বলেছিলেন, আওয়ামী লীগ পদ্মা সেতু করতে পারবে না। আর জোড়াতালি দিয়ে যদি একটি সেতু বানায়ও, তাহলেও সেই সেতু ভেঙে পড়বে। দলীয় নেতা-কর্মীদের তিনি সেতুতে না ওঠার পরামর্শও দেন।

বিএনপিকে ঘিরে আওয়ামী লীগের আক্রমণ এখন এই বিষয়টি নিয়েই। ক্ষমতাসীন দলের নেতারা বলছেন, বিএনপির ধারণা ছিল না নিজের টাকায় সেতু করা সম্ভব নয়, এটা সরকার মিথ্যা প্রমাণ করেছে। আর কানাডার আদালতের রায়েই প্রমাণ হয়েছে, এই সেতু নিয়ে তোলা অভিযোগের পেছনে ছিল ষড়যন্ত্র।

বিশ্বব্যাংক যে অভিযোগটি তোলে, তখনও পদ্মা সেতুর কোনো অর্থ ছাড় করা হয়নি। কানাডীয় কোম্পানি এসএনসি লাভালিন এই কাজ পেতে আগ্রহী ছিল। একটি উড়োচিঠির ওপর ভিত্তি করে বিশ্বব্যাংক দাবি করে, এই কাজ পাওয়ার পেছনে ঘুষ লেনদেনের পরিকল্পনা ছিল। এমনকি একটি কথিত ডায়েরি পাওয়ার কথা জানানো হয়, তাতে কাকে কত টাকা দেয়া হবে, তা উল্লেখ ছিল।

বিশ্বব্যাংকের দাবি ছিল সে সময়ের যোগাযোগমন্ত্রী সৈয়দ আবুল হোসেনের বিরুদ্ধে মামলা করতে হবে। কিন্তু তার বিরুদ্ধে কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি জানিয়ে রাজি হয়নি দুর্নীতি দমন কমিশন।

পরে বিশ্বব্যাংক কানাডার আদালতে এসএনসি লাভালিনের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে মামলা করে, যে মামলার রায় প্রকাশিত হয় ২০১৭ সালে।

অভিযোগের পক্ষে কানাডার আদালতে বিশ্বব্যাংক কোনো তথ্যপ্রমাণ দিতে না পারার পর বিচারক আন্তর্জাতিক দাতা সংস্থাটির প্রতি বিরক্তি প্রকাশ করে এই অভিযোগকে ‘গালগপ্প’ আখ্যা দেয়।

এর পরও পেরিয়ে গেছে আরও পাঁচটি বছর। সেতুর সব কাজ শেষে ঠিক এক মাস পর উদ্বোধনের তারিখ যখন ঘোষণা হয়েছে, তখন আওয়ামী লীগের আক্রমণের মুখে বিএনপি।

তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহ্‌মুদ এমনও বলেছেন, বিএনপি ক্ষমা চেয়ে এই সেতুতে উঠতে পারবে।

পদ্মা সেতু নিয়ে প্রশ্ন তুলেই যাবে বিএনপি

প্রধানমন্ত্রী যা বলেছিলেন

গত ১৮ মে রাজধানীতে আওয়ামী লীগের দলীয় এক আলোচনায় শেখ হাসিনা অভিযোগ করেন, পদ্মা সেতু প্রকল্প থেকে বিশ্বব্যাংক যেন সরে যায়, সে জন্য ড. ইউনূস, ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি স্টারের সম্পাদক নানা সক্রিয় চেষ্টা চালিয়েছেন।

আওয়ামী লীগ জোড়াতালি দিয়ে পদ্মা সেতু বানাচ্ছে, এই সেতু ভেঙে পড়ে যাবে- এই ধরনের বক্তব্য রাখায় খালেদা জিয়ার প্রতিও ক্ষোভ জানান শেখ হাসিনা।

নানা বক্তব্য উল্লেখ করে তিনি পদ্মা সেতুবিরোধীদের সেতুতে নিয়ে চোবানোর কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার উক্তি উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বলেছে, স্প্যানগুলো যে বসাচ্ছে, সেটা ছিল তার কাছে জোড়াতালি দেয়া। পদ্মা সেতু বানাচ্ছে, তাতে চড়া যাবে না, চড়লে সেটা ভেঙে যাবে। তার সঙ্গে ছিল তার কিছু দোসররা। তাদের কী করা উচিত? পদ্মা সেতুতে নিয়ে গিয়ে ওখান থেকে পদ্মা নদীতে টুস করে ফেলে দেয়া উচিত।’

ড. ইউনূসের প্রতি ইঙ্গিত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যিনি (ড. ইউনূস) এমডি পদের জন্য পদ্মা সেতুর মতো টাকা বন্ধ করেছেন, তাকেও আবার পদ্মা নদীতে নিয়ে দুটি চুবানি দিয়ে উঠিয়ে নেয়া উচিত, মরে যাতে না যায়। পদ্মা নদীতে দুটি চুবানি দিয়ে সেতুতে উঠিয়া নেয়া উচিত। তাহলে যদি এদের শিক্ষা হয়।’

পদ্মা সেতু থেকে বিশ্বব্যাংকের সরে যাওয়ার পেছনে ড. ইউনূস ছাড়াও ডেইলি স্টার সম্পাদক মাহফুজ আনামের ভূমিকা ছিল বলেও অভিযোগ করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘প্রতিহিংসা নেয় ড. ইউনূস এবং যেটা আমরা শুনেছি মাহফুজ আনাম। তারা আমেরিকায় চলে যায়, স্টেট ডিপার্টমেন্টে যায়। হিলারির কাছে ই-মেইল পাঠায়। বিশ্বব্যাংকের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট মিস্টার জোয়েলিক তার শেষ কর্মদিবসে কোনো বোর্ডসভায় না, পদ্মা সেতুতে অর্থায়ন বন্ধ করে দেন।’

পরদিন মাহফুজ আনাম তার পত্রিকা দ্য ডেইলি স্টারে এক ব্যাখ্যায় বলেন, ‘আমি স্পষ্টভাবে বলতে চাই যে, আমি এ ধরনের উদ্দেশ্য নিয়ে কখনও যুক্তরাষ্ট্র সফরে যাইনি, মার্কিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে যাইনি, কখনও হিলারি ক্লিনটনকে কোনো ই-মেইল পাঠাইনি, ওয়াশিংটনে বা বিশ্বের অন্য কোনো জায়গায় বা শহরে পদ্মা সেতুর অর্থায়নের সঙ্গে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত কোনো বিষয়ে বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কোনো ধরনের বৈঠক বা যোগাযোগ করিনি।

‘বিনয়ের সঙ্গে বলতে চাই, আমার বিষয়ে করা মন্তব্য তথ্যভিত্তিক নয়।’

আরও পড়ুন:
পদ্মা সেতুতে আলো জ্বলবে জুনের শুরুতে
প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যের অর্থ খালেদার মৃত্যু কামনা নয়: কাদের
আমার বিষয়ে করা মন্তব্য তথ্যভিত্তিক নয়: মাহফুজ আনাম
সেতুর নাম ‘পদ্মা সেতু’ই

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Students will not protest on Friday

শুক্রবার বিক্ষোভ করবে না ছাত্রদল

শুক্রবার বিক্ষোভ করবে না ছাত্রদল সংঘর্ষের সময় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা। ছবি: নিউজবাংলা
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৭ মে সারা দেশে বিসিএস পরীক্ষা হবে। ছাত্রদের স্বার্থ রক্ষা ও তাদের কল্যাণ কামনায় সেদিনের কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে নেতাকর্মীদের ওপর হামলার প্রতিবাদে জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের ডাকা দুদিনের বিক্ষোভ কর্মসূচিতে পরিবর্তন এসেছে। শুধু বৃহস্পতিবার বিক্ষোভ সমাবেশ করবে সংগঠনটি।

ছাত্রদলের দপ্তর সম্পাদক আজিজুল হক সোহেল সই করা এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বুধবার এই তথ্য জানা যায়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ২৭ মে সারা দেশে বিসিএস পরীক্ষা হবে। ছাত্রদের স্বার্থ রক্ষা ও তাদের কল্যাণ কামনায় সেদিনের কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে। ছাত্রদের স্বার্থ সংরক্ষণের আন্দোলনে ছাত্রদল সদা সরব।

শুক্রবারের স্থগিত কর্মসূচির পরিবর্তিত তারিখ পরে জানিয়ে দেয়া হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

ঘোষিত দুদিনের কর্মসূচির প্রথম দিনে বিক্ষোভ সমাবেশ করবে ছাত্রদল।

ছাত্রলীগের হামলায় নেতাকর্মী জখমের প্রতিবাদে মঙ্গলবার দুদিনের বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দেয় জাতীয়তাবাদী ছাত্রদল।

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি কাজী রওনকুল ইসলাম শ্রাবন জানান, ২৬ মে সারা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে (কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়) বিক্ষোভ সমাবেশ হবে। পরদিন একই কর্মসূচি পালন হবে জেলা ও মহানগরে।

সংগঠনটির কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সাইফ মাহমুদ জুয়েল অভিযোগ করেন, মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের সশস্ত্র হামলায় ছাত্রদলের নারী নেত্রীসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ৮০ জন নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অনেকের শারীরিক অবস্থা সঙ্কটাপন্ন। ক্যাম্পাসে পূর্বঘোষিত কর্মসূচি পালনের সময় হকিস্টিক, রড, রামদা, চাপাতি ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা এই হামলা চালায়।

আরও পড়ুন:
বিক্ষোভ সমাবেশ করবে ছাত্রদল
রামদা হাতে সেই তরুণ ছাত্রলীগ নেতা ডিটু
ছাত্রলীগের হামলার প্রতিবাদে জবি ছাত্রদলের মশাল মিছিল

মন্তব্য

বাংলাদেশ
I will not say anything about EVM right now CEC

ইভিএম নিয়ে এখনই কিছু বলব না: সিইসি

ইভিএম নিয়ে এখনই কিছু বলব না: সিইসি বুধবার আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে ইভিএম বিষয়ক মতবিনিময় সভা শেষে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল। ছবি: নিউজবাংলা
কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘পলিটিক্যাল পার্টিগুলো রাজনীতির মাঠে বলছে যে এটা মন্দ মেশিন, ভালো মেশিন না। আমরা লিখিতভাবে জানতে চাইব তারা কী কী সমস্যা পাচ্ছে। তাদেরকে বিষয়গুলো লিখিতভাবে জানাতে বলব। আমরা যেন সিস্টেমেটিক্যালি অ্যাড্রেস করার সুযোগ পাই।’

ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) দেখার পর এটিকে চমৎকার যন্ত্র বলে উল্লেখ করেছেন প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞরা। প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেছেন, ‘মেশিনের ভালো-খারাপ নিয়ে কিছু বলব না, এ ব্যাপারে মন্তব্য ও সিদ্ধান্ত জানতে আরেকটু অপেক্ষা করতে হবে।’

বুধবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে ইভিএম বিষয়ক মতবিনিময় সভা শেষে সিইসি এ কথা বলেন। নির্বাচন কমিশন (ইসি) ও ইভিএম প্রকল্প এই সভার আয়োজন করে।

সিইসি বলেন, ‘বিরোধী দল থেকে যে মতামত এসেছে তা আমরা তুড়ি মেরে উড়িয়ে দিইনি। আমরা কারও মতামতকেই উপেক্ষা করিনি। আমরা বেশকিছু মিটিং করেছি। আজও বিশিষ্টজনদের সঙ্গে বসেছি। প্রযুক্তিবিদদের সঙ্গে বসেছি।

‘এই মেশিনের (ইভিএম) ব্যাপারে প্রযুক্তিবিদদের বক্তব্যের পর এখনই কোনো কিছু বলতে চাচ্ছি না। শুধু বলতে চাচ্ছি, এই মেশিনের বিষয়ে আরও কয়েকটি মিটিং করব। পলিটিক্যাল পার্টিকে ডাকা হবে।’

একজন টেকনিক্যাল ব্যক্তি মেশিন নিয়ে মূল্যায়ন করতে পারেন উল্লেখ করে কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘আমরা সেই পার্সপেকটিভ থেকে টেকনিক্যাল পার্সনদের ডেকেছি। পলিটিক্যাল পার্টিগুলোকেও আমরা অনুরোধ করব তাদের যে টেকনিক্যাল টিম আছে কিংবা যদি থাকে তাদের দিয়ে এটি যাচাই করার জন্য।’

সিইসি বলেন, ‘ইভিএম নিয়ে প্রযুক্তিবিদরা বলেছেন যে ম্যানিপুলেশন করার সুযোগ নেই। আমার কিন্তু আস্থা রাখতে হবে ওইসব মানুষের ওপর, যারা এই জিনিসগুলো বোঝেন, যারা প্রোডাক্টগুলো তৈরি করেছেন। প্রযুক্তিবিদরা আশ্বস্ত হয়েছেন। আমরা আরও কয়েকটি বড় মিটিং করব।

‘পলিটিক্যাল পার্টিগুলো রাজনীতির মাঠে বলছে যে এটা মন্দ মেশিন, ভালো মেশিন না। আমরা লিখিতভাবে জানতে চাইব তারা কী কী সমস্যা পাচ্ছে। তাদেরকে বিষয়গুলো লিখিতভাবে জানাতে বলব। আমরা যেন সিস্টেমেটিক্যালি অ্যাড্রেস করার সুযোগ পাই।

‘আমাদের হয়তো লিমিটেশন আছে। কিন্তু চেষ্টার কোনো ত্রুটি থাকবে না। আমরা যথেষ্ট চেষ্টা করব, যেন সবার আস্থা অর্জন করতে পারি। ইভিএম ভালো না খারাপ তা নিয়ে এখনই কিছু বলব না। আপনাদের আর একটু অপেক্ষা করতে হবে।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সিইসি বলেন, ইভিএম নিয়ে আমরা কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছাইনি। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আমারা ইভিএমে ৩০০ আসনে ভোট করব, না ১০০ আসনে করব, নাকি মোটেই করব না; ইভিএম পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে যথাসময়ে এসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।’

ইভিএম প্রদর্শন শেষে অধ্যাপক মুহম্মদ জাফর ইকবাল সাংবাদিকদের বলেন, ‘একটা মেশিন খুলে দেখেছি। অত্যন্ত চমৎকার একটা মেশিন। আমার মনে হয় পৃথিবীর কম দেশেই এই মূল্যবান জিনিসটা আছে। অত্যন্ত সহজভাবে এটা চালানো সম্ভব।

‘রাজনৈতিক দলগুলোকে অনুরোধ করব, আপনারা এই নতুন মেশিনটা ব্যবহার করুন। তাতে আপনাদেরই লাভ হবে। অন্য যেকোনো মেশিন থেকে এটা আধুনিক। এটি এমনভাবে করা যে ম্যানিপুলেট করার সুযোগ নেই।’

ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির অধ্যাপক এম কায়কোবাদ বলেন, ‘কোনো মেশিনকে শতভাগ বিশ্বাস করা যাবে না। তবে এখানে ইভিএমের প্রতিটি অংশ এমনভাবে কাস্টমাইজড করা হয়েছে যে একজন ইচ্ছে করলেই পরিবর্তন করতে পারবে না। আমাদের দেশের ছেলেমেয়েরা যথেষ্ট দক্ষ এবং তাদেরকে আমরা বিশ্বাস করতে পারি।

এই প্রকল্পের সঙ্গে জড়িতদের যে কনফিডেন্স ও প্রাউড কমিটমেন্ট সেটা আমি নিশ্চিত হয়েছি। এটা খুবই ভালো একটি মেশিন তৈরি করা হয়েছে। আশা করি এটা ডিসপ্লে করা হবে এবং যে কেউ টেস্ট করতে পারবে।’

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘রাজনৈতিক দলগুলোকে আমন্ত্রণ জানানোর বিধান নির্বাচন কমিশনে রয়েছে এবং আশা করি তারা সেটা করবে।’

মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল আহসান হাবিব খান (অব.), বেগম রাশেদা সুলতানা, মো. আলমগীর, মো. আনিছুর রহমান, বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) অধ্যাপক মতিন সাদ আবদুল্লাহ, ড. মো. মাহফুজুল ইসলাম, বাংলাদেশ মেশিন টুলস ফ্যাক্টরির (বিএমটিএফ) পরিচালক মেজর জেনারেল সুলতানুজ্জামান মো. সালেহ উদ্দিন, সেনা কল্যাণ সংস্থার চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মোহাম্মদ সাইদুল ইসলামসহ ইসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
নির্বাচনে আসতে কাউকে বাধ্য করা সম্ভব না: সিইসি
আস্থার সংকট কাটিয়ে নির্বাচন করতে চাই: সিইসি
নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে কিছু বলবে না ইসি
প্রভুর মতো আচরণ নয়: কর্মকর্তাদের সিইসি
আমাদের হারানোর কিছু নাই: সিইসি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
BNPs allegations about Padma Bridge are of a perverted mind Quader

পদ্মা সেতু নিয়ে বিএনপির অভিযোগ বিকৃত মস্তিষ্কের: কাদের

পদ্মা সেতু নিয়ে বিএনপির অভিযোগ বিকৃত মস্তিষ্কের: কাদের আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ফাইল ছবি
আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছিলেন যে পদ্মা সেতু হবে না; এ সরকার কখনো তা করতে পারবে না। বাস্তবতা হলো, পদ্মা সেতু হয়ে গেছে; শুধু উদ্বোধনের অপেক্ষা। তাই বিএনপি ও তার দোসরদের বুকে বড় জ্বালা।’

পদ্মা সেতু নিয়ে বিএনপি নেতাদের বিভিন্ন অভিযোগ তাদের বিকৃত মস্তিষ্কের উদ্ভট আবিষ্কার বলে মন্তব্য করেছেন ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেছেন, পদ্মা সেতু হয়ে যাওয়ায় বিএনপি ও তার দোসরদের বুক জ্বালা করে।

বুধবার চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য নবায়ন ও ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে ঢাকার নিজ বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এ মন্তব্য করেন।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছিলেন যে পদ্মা সেতু হবে না; এ সরকার কখনো তা করতে পারবে না। বাস্তবতা হলো, পদ্মা সেতু হয়ে গেছে; এখন শুধু উদ্বোধনের অপেক্ষা। তাই বিএনপি ও তার দোসরদের বুকে বড় জ্বালা। অথচ পদ্মার দুই পাড়সহ সারা দেশে জনগণের মধ্যে আনন্দ বিরাজ করছে।’

আগামী জাতীয় নির্বাচনে বিএনপি দেশের জনগণকে কী দেখাবে- এমন প্রশ্ন তোলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক। তিনি বলেন, ‘তাদের দেখানোর কিছু নেই। বিএনপির শাসনামলে হাওয়া ভবনের দুর্নীতি, তারেক রহমানের দুর্নীতি আর তাদের নেত্রীর এতিমের টাকা আত্মসাতের দুর্নীতি ছাড়া জনগণকে দেখানোর মতো আর কিছু নেই।’

আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ভালো আচরণ করে মানুষকে খুশি করতে হবে। তা না হলে শেখ হাসিনার এতো সাফল্য, অর্জন ও উন্নয়ন ম্লান হয়ে যাবে।

‘চট্টগ্রামে দলের কোন্দল আর দেখতে চাই না। দ্রুত চট্টগ্রাম মহানগর এবং উত্তর ও দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সম্মেলন করতে হবে। দল থেকে দূষিত রক্ত বের করে দিয়ে বিশুদ্ধ রক্ত সঞ্চালন করতে হবে।’

২৩ জুন আওয়ামী লীগের ৭৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও ২৫ জুন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন উপলক্ষে চট্টগ্রামসহ সারাদেশের নেতাকর্মীদের এখন থেকেই প্রস্তুতি নেয়ার আহ্বন জানান দলটির সাধারণ সম্পাদক।

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন- আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, অর্থ বিষয়ক সম্পাদক বেগম ওয়াসিকা আয়েশা খানম, উপ-প্রচার প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির উদ্দীন এবং শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

এর আগে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে কবির সমাধিতে আওয়ামী লীগের পক্ষে দলের সাধারণ সম্পাদক কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে নিয়ে শ্রদ্ধা জানান।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘কাজী নজরুল ইসলাম অসাম্প্রদায়িক মানবতাবাদী চেতনার ধারক ও বাহক ছিলেন। তার গান আমাদের মুক্তিযুদ্ধে অনুপ্রেরণা জুগিয়েছে।

‘বাংলাদেশে আজও সাম্প্রদায়িকতার শাখা-প্রশাখা আছে। বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সাম্প্রদায়িকতার বিষবৃক্ষ উৎপাটন করে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তুলতে হবে।’

আরও পড়ুন:
পদ্মা সেতু হওয়ায় বিএনপি নেতাদের বুকে বিষজ্বালা: কাদের
বৈশ্বিক প্রভাবে দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি, কিছু করার নাই: কাদের
‘শেখ হাসিনা জাতিকে আর কত দেবেন’
পদ্মা সেতু শেখ হাসিনার নামে না হওয়া অন্যায়: সেতুমন্ত্রী
টাকা তো পাচার করেছেন তারেক রহমান: ওবায়দুল কাদের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Chittagong Metropolitan Awami League Council 1 October

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের কাউন্সিল ১ অক্টোবর 

চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের কাউন্সিল ১ অক্টোবর 
হানিফ বলেন, ‘আওয়ামী লীগের মূল শক্তি জনগণ। আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আসতে হবে। এজন্য দলের সঙ্গে মুনাফেকি করবে না, পদ-বাণিজ্য করবে না-এমন যোগ্য লোককে মাঠ থেকে খুঁজে নিয়ে আসতে হবে। সুবিধাভোগী ও তেলবাজরা সবসময় আশেপাশে ঘুরবে। তাদের দিয়ে সংগঠনের কোনো উপকার হয় না।’
চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের কাউন্সিল ১ অক্টোবর অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল আলম হানিফ।
চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য নবায়ন ও নতুন সদস্য সংগ্রহ অভিযান অনুষ্ঠানে বুধবার দুপুরে এ ঘোষণা দেন তিনি। নগরের কাজীর দেউড়ির ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন হলে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, ‘নগর আওয়ামী লীগের সব ইউনিট, ওয়ার্ড ও থানা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অক্টোবরের আগেই সম্পন্ন হবে। আর ১ অক্টোবরের কাউন্সিলের মধ্য দিয়ে চট্টগ্রামে মহানগর আওয়ামী লীগ নতুন আঙ্গিকে আসবে।’
সংগঠনকে নতুনভাবে ঢেলে সাজানো হচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের মূল শক্তি জনগণ। আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় আসতে হবে। এজন্য দলের সঙ্গে মুনাফেকি করবে না, পদ-বাণিজ্য করবে না-এমন যোগ্য লোককে মাঠ থেকে খুঁজে নিয়ে আসতে হবে। সুবিধাভোগী ও তেলবাজরা সবসময় আশেপাশে ঘুরবে। তাদের দিয়ে সংগঠনের কোনো উপকার হয় না।’
আওয়ামী লীগের এ কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, ‘বাংলাদেশকে দরিদ্র দেশ থেকে উন্নয়ন রাষ্ট্রে পরিণত করেছেন আওয়ামী লীগ। দেশের সব উন্নয়নের সঙ্গে আওয়ামী লীগ জড়িত। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় থাকলে আগামী ৩১ সালে মধ্যে আয়ের রাষ্ট্রে পরিণত হবে।’
বিএনপি প্রতিনিয়ত মিথ্যাচার করছে উল্লেখ করে মাহবুবুল আলম হানিফ বলেন, ‘তারা দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করে অশান্ত পরিবেশ তৈরির চেষ্টা করছে। বিএনপি দেশের উন্নয়ন চায় না। তারা বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র হিসসবে দেখতে চায়। আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে আন্দোলন করার শক্তি বিএনপি-জামায়াত অপশক্তির নেই। সরকারের বিরুদ্ধে তাই প্রতিদিন প্রেসক্লাবে বিএনপি মিথ্যাচার করে যাচ্ছে।’
চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দীন চৌধুরী সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীনের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক হুইপ আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, কেন্দ্রীয় অর্থ ও পরিকল্পনা বিষয়ক সম্পাদক বেগম ওয়াসিকা আয়শা খান, কেন্দ্রীয় ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, কেন্দ্রীয় কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক বেগম ফরিদুন্নাহার লাইলী, কেন্দ্রীয় উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
BNP is afraid to come to the polls Information Minister

বিএনপি নির্বাচনে আসতে ভয় পায়: তথ্যমন্ত্রী

বিএনপি নির্বাচনে আসতে ভয় পায়: তথ্যমন্ত্রী
তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন, সংসদ নির্বাচন, সিটি নির্বাচন কোথাও অংশ নিতে চায় না। কারণ তারা জানে, নির্বাচনে এলে তাদের ভরাডুবি হবে। আমি চাই, বিএনপি ভীতি কাটিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক।’

বিএনপিকে নির্বাচন ভীতি পেয়ে বসেছে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী হাছান মাহ্‌মুদ।

তিনি বলেন, ‘বিএনপি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন, সংসদ নির্বাচন, সিটি নির্বাচন কোথাও অংশ নিতে চায় না। কারণ তারা জানে, নির্বাচনে এলে তাদের ভরাডুবি হবে। আমি চাই বিএনপি ভীতি কাটিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুক।’

কুমিল্লায় বুধবার এক অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

সময়ের সঙ্গে কুমিল্লায় ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে দাবি করে আওয়ামী লীগের এই যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘কুমিল্লায় এখন উঁচু দালানকোঠা তৈরি হয়েছে। সড়ক প্রশস্ত হয়েছে। এগুলো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বের বহিঃপ্রকাশ।’

জেলা প্রশাসন ও সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতায় কুমিল্লায় জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৩তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে হাছান মাহ্‌মুদ বলেন, ‘নজরুলের সঙ্গে কুমিল্লার নিবিড় সম্পর্ক ছিল। তিনি এখানে তার স্ত্রী নার্গিসকে নিয়ে কবিতা লেখেন।’

এর আগে বেলা ১১টায় বেলুন উড়িয়ে তিন দিনব্যাপী নজরুল জন্মজয়ন্তীর উদ্বোধন করেন তিনি।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ, সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি সিমিন হোসেন (রিমি), কুমিল্লা-৬ আসনের সংসদ সদস্য আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার ও খিলখিল কাজী। স্বাগত বক্তব্য দেন সংস্কৃতি সচিব মো. আবুল মনসুর।

এ ছাড়া স্মারক বক্তব্য দেন নজরুল গবেষক অধ্যাপক শান্তিরঞ্জন ভৌমিক। অনুষ্ঠানে ধন্যবাদ জানান কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান। আলোচনার পর অতিথিদের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেয়া হয়।

আরও পড়ুন:
নির্বাচন ছাড়া বিএনপির সামনে পথ নেই: নানক
দুই-এক মাসের মধ্যে বিএনপির সঙ্গে সংলাপ: সিইসি
পদ্মায় চুবনি: আইনি ব্যবস্থার হুঁশিয়ারি ফখরুলের
ওবায়দুল কাদের সাহেব মিথ্যার মহারাজা: রিজভী
এ্যানির বক্তব্যের ‘দাঁতভাঙা জবাব’ দেবে লক্ষ্মীপুর আ. লীগ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
People will judge one day Rizvi

জনগণ একদিন বিচার করবে: রিজভী

জনগণ একদিন বিচার করবে: রিজভী নয়াপল্টনে বুধবার জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের মানববন্ধনে রুহুল কবির জিরভী। ছবি: নিউজবাংলা
রিজভী বলেন, ‘সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বারবার গণতন্ত্র উদ্ধারকারী নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সম্পর্কে নোংরা কথা বলেছেন, হত্যার হুমকি দিয়েছেন। আপনি যে অপরাধ করেছেন, এর বিচার একদিন বাংলার জনগণ করবে।’

পদ্মা সেতু সংক্রান্ত ঘটনায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া বক্তব্যের কড়া সমালোচনা করেছেন দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী। তিনি বলেছেন, জনগণ একদিন এর বিচার করবে।

রাজধানীর নয়াপল্টনে বুধবার জাতীয়তাবাদী মহিলা দলের এক মানববন্ধনে এ কথা বলেন রিজভী।

প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আপনি ছাত্রলীগকে দখলবাজ বানিয়েছেন, চাঁদাবাজ বানিয়েছেন। সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বারবার গণতন্ত্র উদ্ধারকারী নেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সম্পর্কে নোংরা কথা বলেছেন, হত্যার হুমকি দিয়েছেন। আপনি যে অপরাধ করেছেন, এর বিচার একদিন বাংলার জনগণ করবে।

রিজভী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী আপনি আপনার বক্তব্য বিশ্লেষণ করলেই বুঝতে পারবেন, আপনার অপরাধ কী? আপনি হত্যার হুমকি দেন খালেদা জিয়াকে টুস করে ফেলে দেবেন। এইটা জঘন্য হত্যার হুমকি।

‘ইলিয়াস আলী কই? চৌধুরী আলম কই? সাইফুল ইসলাম হিরু কই? এসব গুমের অপরাধ। ছাত্রনেতা জনিকে ক্রসফায়ার দেয়া হয়েছে।’

বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘গুণ্ডাদেরও একটা নৈতিকতা থাকে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা যেভাবে ছাত্রীদের ওপর হামলা করেছে তা কাপুরুষোচিত সন্ত্রাসীদের কাজ। ছাত্রলীগ মেয়েদের লাঞ্ছিত করে। ছাত্রদল নেত্রী মানসুরা হাসপাতালের বেডে কাতরাচ্ছে।’

সামনে বাংলাদেশ বিএনপির ব্যাপক আন্দোলন আসছে জানিয়ে দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব বলেন, ‘আগামী দিনে বিএনপির পক্ষ থেকে ব্যাপক আন্দোলন কর্মসূচি আসছে। এই জন্য সবাইকে প্রস্তুত থাকতে হবে। সেই আন্দোলনে অবশ্যই জাতীয়তাবাদী মহিলা দল সম্মুখ সারিতে উপস্থিত থাকবেন বলে আমি বিশ্বাস করি।’

মহিলা দলের সহসভাপতি ইয়াসমিন আরা হকের সভাপতিত্বে বিক্ষোভ সমাবেশে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সুলতানা আহমেদ, ঢাকা মহানগর মহিলা দলের নায়াবে ইউসুফসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য ‘অ্যাটেম্পট টু মার্ডার’: রিজভী
ওবায়দুল কাদের সাহেব মিথ্যার মহারাজা: রিজভী
নিত্যপণ্যের দাম আলোর গতিতে দৌড়াচ্ছে: রিজভী

মন্তব্য

p
উপরে