তালই সম্বোধন করা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০

player
তালই সম্বোধন করা নিয়ে সংঘর্ষে আহত ২০

দিরাই থানার ওসি (তদন্ত) আকরাম আলী বলেন, আত্মীয়তার সম্বোধন নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। এ ঘটনায় অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পরিবারের অমতে ছয়মাস আগে পালিয়ে বিয়ে করেন রাজন বিশ্বাস ও শান্তনা দেবনাথ।

মেয়ে পক্ষের মামলায় রাজন জেল খাটলেও জামিনে ছাড়া পান রাজন। স্ত্রীকে নিয়ে তার সংসার চলছিল ঠিকঠাক। তবে হঠাৎ সেই সংসারের ছন্দপতন। এক আত্মীয়কে ‘তালই’ সম্বোধন করা নিয়ে দুই পরিবারের সদস্যদের মধ্যে হয়েছে সংঘর্ষ।

ঘটনাটি ঘটেছে রোববার সকাল ১০টার দিকে দিরাই উপজেলার করিমপুর ইউনিয়নের পুরাতন কর্ণগাঁও গ্রামে।

ছেলে পক্ষের আহতরা হলেন জীতেশ বিশ্বাস, স্বপন বিশ্বাস, সাজন বিশ্বাস, দিবিন্দ বিশ্বাস, নিরঞ্জন বিশ্বাস, ধরনী বিশ্বাস, রেনু বিশ্বাস, শান্তনা বিশ্বাস, সাগর বিশ্বাস, কাজল বিশ্বাস এবং মেয়ে পক্ষের জগবন্ধু দেবনাথ, রতিন্দ্র দেবনাথ, বাবুল দেবনাথ, বিপুল দেবনাথ, বনবামালি দেবনাথ, প্রদীপ দেবনাথ, শামল দেবনাথ, কান্ত দেবনাথ, রেখা দেবনাথ, বিজয়া দেবী, রুহিনী দেবী, সুচিত্রা দেবী। আহতরা দিরাই সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

দিরাই থানা পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, পুরাতন কর্ণগাঁও গ্রামের লালমোহন বিশ্বাসের ছেলে রাজন ও শশাঙ্ক দেবনাথের মেয়ে শান্তনা পরিবারের অমতে পালিয়ে বিয়ে করেন। এ ঘটনায় মেয়ের পরিবার মামলা করলে দেড়মাস হাজতবাস শেষে জামিন পান রাজন।

তবে শনিবার রাতে রাজনের ভাই সাজন বিশ্বাস মেয়ের চাচা নীরেশ দেবনাথকে তালই সম্বোধন করেন। এ নিয়ে তাদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এরই জেরে রোববার সকালে দুই পরিবারের লোকজন সংঘর্ষে জড়ায়।

দিরাই থানার ওসি (তদন্ত) আকরাম আলী নিউজবাংলাকে বলেন, আত্মীয়তার সম্বোধন নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে। এ ঘটনায় অভিযোগ পেলে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
গোপালগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আটক ৫
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৮
আধিপত্য নিয়ে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ৫
জুমার নামাজে দরুদ পাঠ নিয়ে সংঘর্ষ
ভোট নিয়ে বিবাদে বাড়িঘরে আগুন গুলি

শেয়ার করুন

মন্তব্য

শিক্ষার্থীদের দাবি ‘সংহতি’, শিক্ষকরা জানালেন ‘সহমর্মিতা’

শিক্ষার্থীদের দাবি ‘সংহতি’, শিক্ষকরা জানালেন ‘সহমর্মিতা’

অনশনের দ্বিতীয় দিনে বৃহস্পতিবার দুপুরে একজন অসুস্থ হয়ে পড়েন। ছবি: নিউজবাংলা

উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদের পদত্যাগ দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো অনশন করে যাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৪ শিক্ষার্থী। বৃহস্পতিবার দুপুরে অনশনকারীদের একজন অসুস্থ হয়ে পড়েন। কাজল দাস নামের ওই শিক্ষার্থীকে নগরের রাগিব রাবেয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শিক্ষকদের আলোচনার প্রস্তাব আবারও ফিরিয়ে দিয়েছেন সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল ইসলামের নেতৃত্বে বৃহস্পতিবার দুপুরে অর্ধশতাধিক শিক্ষক উপাচার্যের বাসবভনের সামনে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা করতে যান।

তবে এ সময় শিক্ষার্থীরা জানান, উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে তাদের আন্দোলনের সঙ্গে সংহতি না জানালে শিক্ষকদের সঙ্গে কোনো আলোচনা করবেন না।

শিক্ষকরা শিক্ষার্থীদের প্রতি সহমর্মিতা জানিয়ে বলেন, ‘প্রয়োজনে বিচার বিভাগীয় তদন্ত করে এ ঘটনার জন্য দায়ীদের খুঁজে বের করা হবে। যার দোষ পাওয়া যাবে তার বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আন্দোলনে তারাও শরিক হবেন।’

তবে শিক্ষকদের এমন কথায় আশ্বস্ত না হয়ে আলোচনার প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন শিক্ষার্থীরা। পরে সমঝোতায় ব্যর্থ হয়ে ফিরে যান শিক্ষকরা। তবে যাওয়ার আগে জানিয়ে যান, আলোচনার জন্য আবারও আসবেন।

উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমদের পদত্যাগ দাবিতে দ্বিতীয় দিনের মতো অনশন করে যাচ্ছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৪ শিক্ষার্থী। বৃহস্পতিবার দুপুরে অনশনকারীদের একজন অসুস্থ হয়ে পড়েন। কাজল দাস নামের ওই শিক্ষার্থীকে নগরের রাগিব রাবেয়া মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের পক্ষে সংবাদ মাধ্যমে কথা বলেন শিক্ষার্থী নাফিজা আনজুম। তিনি বলেন, ‘যে উপাচার্য শিক্ষার্থীদের ওপর হামলা ও গুলির নির্দেশ দেন। তার কাছে আমরা শিক্ষার্থীরা কোনোভাবেই নিরাপদ অনুভব করছি না। তার অধীনে আমরা কিছুতেই ক্লাসে ফিরে যাব না। তাকে পদত্যাগ করতেই হবে।’

শিক্ষকদের আলোচনার প্রস্তাব প্রসঙ্গে আন্দোলকারী মোহাইমিনুল বাশার বলেন, ‘আমরা নায্য দাবিতে আন্দোলন করছি। উপাচার্য আমাদের ওপর গুলি চালিয়েছেন। আমরা তার পদত্যাগ চাই। এখন আর আলোচনার সুযোগ নেই। আমরা চাই আমাদের শিক্ষকরাও এই দাবির সঙ্গে একাত্ম হয়ে আমাদের আন্দোলনে শরিক হবেন। এই স্বৈরাচারী উপাচার্যকে ক্যাম্পাস থেকে বিতাড়িত করবেন।’

শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনায় ব্যর্থ হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আনোয়ারুল ইসলাম বেলন, ‘আমরা তাদের বলেছি, এই ঘটনায় যারাই দায়ী তাদের তদন্ত কের খুঁজে বের করা হবে। যদি উপাচার্যেরও দোষ পাওয়া যায় তাহলে আমরাও তার পদত্যাগের দাবিতে সোচ্চার হবে। তবে তদন্তের সময় দিতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের শিক্ষার্থীরা রাগ করেছে। তবে আমাদের রাগ করলে চলবে না। আমরা তাদের কাছে আবারও আলোচনার জন্য আসবো। বারবার আসবো।’

এর আগে বুধবার রাতে শিক্ষার্থীদের অনশন ভাঙাতে ও আলোচনার প্রস্তাব নিয়ে এসেছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের শতাধিক শিক্ষক।

কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক আনোয়ারুল ইসলামের নেতৃত্বে শিক্ষকরা উপাচার্য ভবনের সামনে এসে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলতে চান। তবে শিক্ষার্থীরা তাদের দাবির সঙ্গে সংহতি প্রকাশ না করলে শিক্ষকদের সঙ্গে কোনো কথা বলবেন না বলে সাফ জানিয়ে দেন। প্রায় দুই ঘণ্টা সেখানে অবস্থান করে ব্যর্থ হয়ে ফিরে যান শিক্ষকরা।

বুধবার রাতে আন্দোলন চলাকালে অসুস্থ হয়ে পড়েন দুই শিক্ষার্থী। তাদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
গোপালগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আটক ৫
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৮
আধিপত্য নিয়ে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ৫
জুমার নামাজে দরুদ পাঠ নিয়ে সংঘর্ষ
ভোট নিয়ে বিবাদে বাড়িঘরে আগুন গুলি

শেয়ার করুন

পাইকপাড়ায় আগুন: ক্ষতিগ্রস্তদের কান্নায় ভারী পরিবেশ

পাইকপাড়ায় আগুন: ক্ষতিগ্রস্তদের কান্নায় ভারী পরিবেশ

ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘আগুন লাগিয়ে দেয়ার কোনো আলামত আমরা পাইনি। যখন আগুন লাগে তখন বিদ্যুৎ ছিল ওই গ্রামে। আমরা ধারণা করছি, কোনো চুলা থেকে আগুনের সূত্রপাত।’

রাতের অন্ধকারে লাগা আগুন কেড়ে নিয়েছে মাথা গোঁজার ঠিকানা। পুড়ে গেছে ঘরের আসবাবসহ নানা সরঞ্জাম। সেই শোকে প্রতিবেশী ও শুভাকাঙ্খীদের গলা জড়িয়ে ক্ষণে ক্ষণে কেঁদে উঠছে দিনমজুর নেকো মিয়ার স্ত্রী শিরিন আক্তার। কাঁদতে কাঁদতে তিনি সংজ্ঞা হারাচ্ছেন। আবারও ঢুকরে কেঁদে উঠেছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে তার সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করে নিউজবাংলা। এক পর্যাযে তিনি বলেন, ‘কনকনে শীতে তেমন মাঠে কাজ মেলেনি। বাড়িতে পালিত গাভীর দুধ বিক্রি করে তার সংসার ও সন্তানের লেখাপড়ার খরচ চলতো। কিন্তু অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় তার ৩টি গরু ও ৩টি ছাগল পুড়ে কয়লা হয়ে যায়। সকালে একটি ক্ষেতে সেগুলো মাটি চাপা দেয়া হয়েছে।’

সদর উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের পটুয়া পাইকপাড়া গ্রামে বুধবার রাত ১১টার দিকে আগুন লাগে। এতে পুড়ে গেছে গ্রামের অর্ধশতাধিক ঘর। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আরও ১০-১২টি বসতি।

সরেজমিনে দেখা যায়, আশপাশের বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এই গ্রামে এসেছেন। সঙ্গে আনা শীতবস্ত্র ও শুকনো খাবার দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর পাশে থাকার চেষ্টা করছেন তারা। সব হারানো পরিবারগুলোর কান্নায় সেখানে ভারী হয়ে আছে পরিবেশ।

পাইকপাড়ায় আগুন: ক্ষতিগ্রস্তদের কান্নায় ভারী পরিবেশ
স্বজনকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে দেখা যায় শিরিন আক্তার

পুড়ে যাওয়া ঘরের মধ্যে নিজের নতুন বই আর খেলনা খুঁজেছিল ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী লিমা আক্তার। সে বলে,‘আমার নতুন বইগুলো পুড়ে গেছে। আমার বাবার জামানো টাকা, আমাদের কাপড়-চোপড় সবকিছু পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।’

আগুনের সূত্রপাত নিয়ে এ দিন স্থানীয়দের মধ্যে ভিন্ন বক্তব্য পাওয়া গেছে। কেউ বলছেন, আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়েছে। অনেকে আবার চুলা কিংবা বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুন লাগার বিষয়টি সামনে এনেছেন।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ ফরহাদ হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আগুন লাগিয়ে দেয়ার কোনো আলামত আমরা পাইনি। যখন আগুন লাগে তখন বিদ্যুৎ ছিল ওই গ্রামে। আমরা ধারণা করছি, কোনো চুলা থেকে আগুনের সূত্রপাত।’

ঠাকুরগাঁওযের জেলা প্রশাসক মাহবুবুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রাতেই ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। সকাল থেকে তাদের নামের তালিকা ও ক্ষতির পরিমাণ তালিকাভুক্তির কাজ চলছে। আমরা সরকারিভাবে যতটুকু পারি তাদের জন্য করব।’

আরও পড়ুন:
গোপালগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আটক ৫
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৮
আধিপত্য নিয়ে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ৫
জুমার নামাজে দরুদ পাঠ নিয়ে সংঘর্ষ
ভোট নিয়ে বিবাদে বাড়িঘরে আগুন গুলি

শেয়ার করুন

বড় ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে ছোট ভাই খুন

বড় ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে ছোট ভাই খুন

জমি নিযে বিরোধের জেরে ছোট ভাইকে খুনের অভিযোগ উঠেছে। ছবি: নিউজবাংলা

নরসিংদী শহর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই শফিকুল আলম বলেন, ‘জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরেই এ হত্যা সংঘটিত হয়েছে। এর বাইরে কোনো বিষয় আছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

নরসিংদীর নাগরিয়াকান্দিতে জমিজমাসংক্রান্ত বিরোধের জেরে বড় ভাইয়ের বিরুদ্ধে ছোট ভাইকে ছুড়িকাঘাতে খুনের অভিযোগ উঠেছে।

উপজেলার কামারগাঁও এলাকায় বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত নবী মিয়ার বয়স ৪০ বছর।

নিউজবাংলাকে ঘটনা নিশ্চিত করেছেন নরসিংদী শহর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই শফিকুল আলম।

নিহতের স্বজন ও স্থানীয়দের বরাতে তিনি জানান, জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নবী মিয়ার সঙ্গে তার বড় ভাই আলী হোসেনের মনমালিন্য চলে আসছিল। এরই মধ্যে তাদের পারিবারিক সম্পত্তি ভাগাভাগিও করা হয়।

কিন্তু আজ সকালে বাড়ির সীমানায় দেয়াল উঠানোকে কেন্দ্র করে দুই ভাইয়ের মধ্যে বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। একপর্যায়ে বড় ভাই আলী হোসেন উত্তেজিত হয়ে নবী মিয়ার পেটে ছুরিকাঘাত করেন।

পরে প্রতিবেশীরা নবী মিয়াকে আহতাবস্থায় উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

স্বজনরা জানান, স্থানীয় একটি জুট মিলে চাকরি করতেন নবী মিয়া। কিন্তু চাকরি চলে যাওয়ার পর পেনশনের টাকা তুলতে নবীর ওপর চাপ দিয়েছিলেন আলী হোসেন। কিন্তু টাকা তুলে দিতে অস্বীকৃতি জানালে নবীকে তখন মারধর করেন বড় ভাই আলী।

এসআই শফিকুল আলম বলেন, ‘জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরেই এই হত্যা সংঘটিত হয়েছে। এর বাইরে কোনো বিষয় আছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ঘটনার পর থেকে আলী হোসেন পলাতক। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে।’

আরও পড়ুন:
গোপালগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আটক ৫
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৮
আধিপত্য নিয়ে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ৫
জুমার নামাজে দরুদ পাঠ নিয়ে সংঘর্ষ
ভোট নিয়ে বিবাদে বাড়িঘরে আগুন গুলি

শেয়ার করুন

শাবি ভিসির ‘আপত্তিকর মন্তব্য’: জাবি শিক্ষকদের প্রতিবাদ

শাবি ভিসির ‘আপত্তিকর মন্তব্য’: জাবি শিক্ষকদের প্রতিবাদ

শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ।

শিক্ষক সমিতির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের নিয়ে যে মন্তব্য করেছেন, তা অত্যন্ত  অবমাননাকর ও অসম্মানজনক।’

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ছাত্রীদের নিয়ে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির ‘আপত্তিকর মন্তব্যের’ প্রতিবাদ জানিয়েছে জাবি শিক্ষক সমিতি ও বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ। একই সঙ্গে ক্ষোভও জানিয়েছেন শিক্ষকরা।

সংগঠন দুটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বৃহস্পতিবার এই প্রতিবাদ ও ক্ষোভ জানানো হয়।

শিক্ষক সমিতির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের নিয়ে যে মন্তব্য করেছেন, তা অত্যন্ত অবমাননাকর ও অসম্মানজনক।

‘শাবি উপাচার্যের আপত্তিকর মন্তব্যের বিরুদ্ধে আমরা তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং ক্ষোভ প্রকাশ করছি। আমরা আশা করি, তিনি প্রকাশ্যে তার ভুল স্বীকার করে অশোভন মন্তব্য প্রত্যাহার করবেন।’

বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘সম্প্রতি শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের তার সন্তানতুল্য শিক্ষার্থীদের সম্পর্কে অবমাননাকর ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দেন। বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ তার বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে।

‘ওই মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে, যা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করছে।’

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমদের পদত্যাগের দাবিতে চলা আন্দোলনের মধ্যে একটি অডিও ক্লিপ ফাঁস হয়। এতে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীদের নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করতে শোনা যায় এক ব্যক্তিকে।

যারা এই অডিওটি ফাঁস করেছেন তাদের দাবি, এটি উপাচার্য ফরিদ উদ্দিনের। ছাত্রীদের রাতে বাইরে থাকা নিয়ে কটাক্ষ করছেন উপাচার্য।

বিষয়টি নিয়ে মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক ছাত্রীর সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার। তারা জানিয়েছেন, অডিওটি উপাচার্য ফরিদ উদ্দিনের, তবে এটি ২০১৯ সালের।

অডিওতে শোনা যায়, ‘যারা এই ধরনের দাবি তুলেছে, যে বিশ্ববিদ্যালয় সারারাত খোলা রাখতে হবে, এইটা একটা জঘন্য রকম দাবি। আমরা মুখ দেখাইতে পারতাম না। এখানে আমাদের ছাত্রনেতা বলছে যে, জাহাঙ্গীরনগরের মেয়েদের সহজে কেউ বউ হিসেবে চায় না। কারণ সারারাত এরা ঘোরাফেরা করে। বাট আমি চাই না যে আমাদের যারা এত ভালো ভালো স্টুডেন্ট, যারা এত সুন্দর, এত সুন্দর ডিপার্টমেন্টগুলো, বিখ্যাত সব শিক্ষক... তারা যাদের গ্র্যাজুয়েট করবে, এরকম একটা কালিমা লেপুক তাদের মধ্যে।

‘ওই জায়গাটা কেউ চায় না, কোনো গার্ডিয়ানও চান না কিন্তু। এখন আমরা যদি কোনো মেয়েকে বলি তোমার বাবা-মা কাউকে ফোন করব... তখন তোমরাই তো এতে বাধা দিবা... না না না এইটা হবে না, দেখ হয়রানি করতেছে। কিন্তু এইটা তো প্রত্যেকের নৈতিক দায়িত্ব। তোমাদেরও নৈতিক দায়িত্ব যে, এই মেয়ে কেন রাতের বেলা সোয়া দশটা পর্যন্ত স্যাররে সময় দিসে?’

ওই ক্লিপে আরও শোনা যায়, ‘আমি মাঝে মাঝে ঢাকা থেকে যখন আসি, রাতে ১২টা-১টা বেজে যায়। আমি দেখি যে আমাদের ওয়ান কিলোমিটার রাস্তা দিয়া ছেলে-মেয়ে হাত ধরাধরি করে কনসালটিং করতাছে। একটা অঘটন ঘটে গেলে দায়দায়িত্ব ভাইস চ্যান্সেলরকে নিতে হবে। যত দোষ, নন্দ ঘোষ। ভাইস চ্যান্সেলর দায়ী সে জন্য।’

এই ক্লিপের বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। আন্দোলনকারীরা তাকে বাসভবনে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন। ফোনে যোগাযোগের একাধিক চেষ্টা করা হলেও রিসিভ করেননি তিনি।

আরও পড়ুন:
গোপালগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আটক ৫
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৮
আধিপত্য নিয়ে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ৫
জুমার নামাজে দরুদ পাঠ নিয়ে সংঘর্ষ
ভোট নিয়ে বিবাদে বাড়িঘরে আগুন গুলি

শেয়ার করুন

রিমান্ডে আরসা প্রধানের ভাই শাহ আলী

রিমান্ডে আরসা প্রধানের ভাই শাহ আলী

আরসাপ্রধান আতাউল্লাহর ভাই শাহ আলী। ছবি: নিউজবাংলা

কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক চন্দন কুমার চক্রবর্তী জানান, কড়া নিরাপত্তায় এদিন সকাল ১১টার দিকে আদালতে তোলা হয় শাহ আলীকে। তিন মামলায় তাকে সাতদিন করে রিমান্ড চেয়েছিল পুলিশ। শুনানি শেষে প্রত্যেক মামলায় দুইদিন করে মোট ৬ দিন রিমান্ডে নেয়ার অনুমতি দেন বিচারক।

মিয়ানমারের সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপ আরকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি বা আরসার প্রধান আতাউল্লাহ আবু জুনুনীর ভাই শাহ আলীকে ৬ দিনের রিমান্ডে পেয়েছে পুলিশ।

কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম শ্রী গিয়ান তংঞ্চঙ্গা বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তাকে রিমান্ডে পাঠান।

নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক চন্দন কুমার চক্রবর্তী।

তিনি জানান, কড়া নিরাপত্তায় এদিন সকাল ১১টার দিকে আদালতে তোলা হয় শাহ আলীকে। তিন মামলায় তাকে সাতদিন করে রিমান্ড চেয়েছিল পুলিশ। শুনানি শেষে প্রত্যেক মামলায় দুইদিন করে মোট ৬ দিন রিমান্ডে নেয়ার অনুমতি দেন বিচারক।

রোববার শাহ আলীকে আটকের পর তার বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে মামলা করেছে পুলিশ। আরও একটি মামলা হয়েছে অপহরণের অভিযোগে। বুধবার তার রিমান্ড শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও তা পিছিয়ে যায়।

পুলিশের করা মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, শাহ আলীর বিরুদ্ধে বিরুদ্ধে ঢাকার হাজারীবাগ থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা আছে। ২০১৯ সালে পুলিশের করা ওই মামলায় তিনি হাইকোর্ট থেকে জামিনে ছিলেন। তার বাংলাদেশি জাতীয় পরিচয়পত্রও আছে।

আরও পড়ুন:
গোপালগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আটক ৫
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৮
আধিপত্য নিয়ে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ৫
জুমার নামাজে দরুদ পাঠ নিয়ে সংঘর্ষ
ভোট নিয়ে বিবাদে বাড়িঘরে আগুন গুলি

শেয়ার করুন

বাবার গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার, ছেলে আটক

বাবার গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার, ছেলে আটক

বাবাকে হত্যার অভিযোগে ছেলেকে আটক করেছে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা

দামকুড়া থানার ওসি মাহবুব আলম বলেন, ‘এ হত্যার পেছনে আর কোনো ঘটনা আছে কি না তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। পরে আরও বিস্তারিত জানা যাবে।’

রাজশাহী নগরীর একটি বাড়ির সেফটিক ট্যাংক থেকে এক ব্যক্তির গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নগরীর দামকুড়া এলাকা থেকে বৃহস্পতিবার সকালে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে নিহতের ছেলে ৩২ বছরের স্বপনকে আটক করা হয়েছে।

নিহতের নাম সাজ্জাদ হোসেন। তার বয়স ৬৫ বছর।

নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন দামকুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুব আলম।

তিনি জানান, গত মঙ্গলবার রাত থেকে সাজ্জাদ হোসেন নিখোঁজ ছিলেন। এ ঘটনায় বুধবার তার ছেলে আব্দুল হাদী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। জিডির সূত্র ধরে পুলিশ তার অন্য ছেলে স্বপনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে।

স্বপনের আচরণ সন্দেহজনক ছিল। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি একপর্যায়ে বাবাকে প্রথমে শ্বাসরোধ ও পরে গলা কেটে হত্যা করার কথা স্বীকার করেন। হত্যার পর মরদেহ বাড়ির সেফটিক ট্যাংকে ভরে রাখেন।

পুলিশ কর্মকর্তা আরও জানান, স্বপন পুলিশকে জানিয়েছেন, এক বছর আগে তার মা মারা যান। এরপর তার বাবা দ্বিতীয় বিয়ে করার কথা বলেন। কিন্তু দ্বিতীয় বিয়ে করলে সম্পত্তি ভাগ হয়ে যাবে- এমন চিন্তা থেকেই স্বপন তার বাবাকে হত্যা করেন।

ওসি মাহবুব বলেন, ‘এ হত্যার পেছনে আর কোনো ঘটনা আছে কি না তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। পরে আরও বিস্তারিত জানা যাবে।’

আরও পড়ুন:
গোপালগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আটক ৫
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৮
আধিপত্য নিয়ে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ৫
জুমার নামাজে দরুদ পাঠ নিয়ে সংঘর্ষ
ভোট নিয়ে বিবাদে বাড়িঘরে আগুন গুলি

শেয়ার করুন

শ্রীপুরে ট্রেন লাইনচ্যুত

শ্রীপুরে ট্রেন লাইনচ্যুত

গাজীপুরে ময়মনসিংহগামী মহুয়া এক্সপ্রেস ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

ঢাকা রেলওয়ে কন্ট্রোল রুমের কর্মকর্তা মো. মোখলেস জানান, রাজধানীর কমলাপুর থেকে মোহনগঞ্জের উদ্দেশে যাচ্ছিল মহুয়া এক্সপ্রেস ট্রেনটি। কাওরাইদ স্টেশনে পৌঁছানোর পর দুই নম্বর লাইনে ইঞ্জিনসহ পেছনের বগি লাইনচ্যুত হয়।

গাজীপুরে ময়মনসিংহগামী মহুয়া এক্সপ্রেস ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে।

শ্রীপুরের কাওরাইদ রেলস্টেশনে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

আতঙ্কিত হয়ে ট্রেন থেকে তাড়াহুড়ো করে নামতে গিয়ে বেশ কয়েকজন যাত্রী আহত হয়েছেন।

ঢাকা রেলওয়ে কন্ট্রোল রুমের কর্মকর্তা মো. মোখলেস নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ঢাকার কমলাপুর থেকে মোহনগঞ্জের উদ্দেশে যাচ্ছিল মহুয়া এক্সপ্রেস ট্রেনটি। কাওরাইদ স্টেশনে পৌঁছানোর পর দুই নম্বর লাইনে ইঞ্জিনসহ পেছনের বগি লাইনচ্যুত হয়।

মো. মোখলেস জানান, এ ঘটনার পর ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ হয়নি। বিকল্প লাইনে ট্রেন গন্তব্যস্থলে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:
গোপালগঞ্জে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আটক ৫
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংঘর্ষ, পুলিশসহ আহত ৮
আধিপত্য নিয়ে সংঘর্ষ, গুলিবিদ্ধ ৫
জুমার নামাজে দরুদ পাঠ নিয়ে সংঘর্ষ
ভোট নিয়ে বিবাদে বাড়িঘরে আগুন গুলি

শেয়ার করুন