কংগ্রেস এখন ডিপ ফ্রিজে: তৃণমূল

player
কংগ্রেস এখন ডিপ ফ্রিজে: তৃণমূল

ভারতীয় কংগ্রেসের দলীয় পতাকা। ছবি: সংগৃহীত

তৃণমূলের দলীয় মুখপত্র ‘জাগো বাংলা’র সম্পাদকীয়তে কংগ্রেসের বিরুদ্ধে তোপ দেগে লেখা হয়েছে- কংগ্রেসের নেতারা টুইট-সর্বস্ব, কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক জোট (ইউপিএ) ভগ্ন। বিজেপি বিরোধীদের ভরসা এখন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আন্দোলনবিমুখ কংগ্রেস এখন ডিপ ফ্রিজে চলে গেছে বলে মন্তব্য করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। দলটি বলছে, বিজেপিবিরোধীরা এখন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দিকে তাকিয়ে।

শুক্রবার প্রকাশিত তৃণমূলের দলীয় মুখপত্র ‘জাগো বাংলা’র সম্পাদকীয়তে কংগ্রেসের বিরুদ্ধে তোপ দেগে আরও লেখা হয়েছে- কংগ্রেসের নেতারা টুইট-সর্বস্ব, কংগ্রেসের নেতৃত্বাধীন প্রগতিশীল গণতান্ত্রিক জোট (ইউপিএ) ভগ্ন। বিজেপিবিরোধীদের ভরসা এখন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

‘ডিপ ফ্রিজে কংগ্রেস’ শীর্ষক সম্পাদকীয়তে লেখা হয়েছে, ইউপিএ শেষ। বিরোধী জোট দরকার। দলীয় কোন্দল আর রক্তক্ষরণে কংগ্রেস এতটাই বিদীর্ণ যে, দল ধরে রাখাই সমস্যা হয়ে দাঁড়াচ্ছে। পাঞ্জাব থেকে গোয়া, ত্রিপুরা সে কথাই বুঝিয়ে দিচ্ছে। অথচ সাম্প্রদায়িক অগণতান্ত্রিক, জনবিরোধী, শ্রমিক-কৃষকবিরোধী বিজেপিকে হারানোর জন্য বিকল্প জোটের আশুপ্রয়োজন।

সম্পাকীয়তে আরও বলা হয়, সবচেয়ে বড় বিরোধী দল কংগ্রেস ডিপ ফ্রিজে পার্টিকে বন্দি করে রেখেছে। সামান্য লোক দেখানো আন্দোলন ছাড়া, নেতারা কার্যত ঘরবন্দি, টুইট-সর্বস্ব।

এর আগে বৃহস্পতিবার সকালে তৃণমূলের ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোর টুইটে কংগ্রেসকে আক্রমণ করে বলেন, শেষ ১০ বছরে ৯০ শতাংশ নির্বাচনে হেরেছে কংগ্রেস। নেতৃত্ব দেয়া কংগ্রেস নেতৃত্বের কোনো ঈশ্বর-প্রদত্ত অধিকার নয়। গণতন্ত্র পদ্ধতিতে বিরোধী নেতৃত্বের সিদ্ধান্ত নেয়া হোক।

কংগ্রেসের দুর্বলতা তুলে ধরে টুইট করেছেন খোদ দলটির শীর্ষ নেতা গুলাম নবী আজাদ। তিনি লিখেছেন, আগামী লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির মতো ৩০০ আসনে জিতে আসার ক্ষমতা কংগ্রেসের নেই। ক্ষমতা থেকে এখন ক্রমেই দূরে সরে যাচ্ছে কংগ্রেস।

সাম্প্রতিক সময়ে দেখা যায়, তৃণমূল কংগ্রেস লাগাতার কংগ্রেস নেতৃত্বের বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমণ করে গেলেও কংগ্রেস সেভাবে তৃণমূলের বিরুদ্ধে আক্রমণে যাচ্ছে না। তৃণমূল নিয়ে কংগ্রেস নেতৃত্ব দ্বিধাবিভক্ত। তৃণমূলের বিরুদ্ধে প্রতিক্রিয়া দেয়ার মতো সাহসও দেখাতে পারছে না কংগ্রেস।

তৃণমূলের তরফে ওই নিবন্ধে দাবি করা হয়েছে, দেশে এই মুহূর্তে বিরোধী শক্তির জোটের দরকার। সেই দায়িত্ব বিরোধীরাই দিয়েছেন তৃণমূল নেত্রীকে। কারণ তিনিই এখন সর্বজনগ্রাহ্য বিরোধী মুখ, জনপ্রিয় মুখ। তার দিকে তাকিয়ে বিরোধী শক্তি।

আরও পড়ুন:
বিজেপিশাসিত রাজ্যে গণতন্ত্রের কঙ্কাল বেরিয়ে পড়েছে: মমতা
বিজেপির বিরুদ্ধে ত্রিপুরায় তৃণমূলের পাশে সিপিএম
‘আগরতলার জন্য নবরত্ন’
কংগ্রেস-বিজেপি বিরোধিতায় সরব মমতা
তৃণমূলে যোগ দিলেন টেনিস তারকা লিয়েন্ডার পেজ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

অপর্ণা সেনের নামে এফআইআর বিজেপির

অপর্ণা সেনের নামে এফআইআর বিজেপির

অপর্ণা সেন। ছবি: সংগৃহীত

বিজেপির অভিযোগ, অপর্ণা সংবাদ সম্মেলনে বিএসএফকে খুনি, ধর্ষক বলে অপমান করেছেন। এ জন্য তাকে ক্ষমা চাইতে হবে।

ভারতের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফকে নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্যের অভিযোগে প্রখ্যাত অভিনেত্রী ও চিত্র পরিচালক অপর্ণা সেনের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ (এফআইআর) দিয়েছে ক্ষমতাসীন দল বিজেপি।

সোমবার পশ্চিমবঙ্গের কলকাতার উল্টোডাঙ্গা থানায় এই অভিযোগ করেন বিজেপির উত্তর কলকাতা জেলা সভাপতি কল্যাণ চৌবে। শুধু তাই নয়, পুলিশ ব্যবস্থা না নিলে আদালতে যাওয়ার হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন তিনি।

গত নভেম্বরে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ১৫ কিলোমিটারের পরিবর্তে ৫০ কিলোমিটার পর্যন্ত আন্তর্জাতিক সীমানা থেকে ভারতীয় ভূখণ্ডে বিএসএফের কাজের দায়িত্ব বাড়িয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বর্ধিত এলাকায় বিএসএফের জওয়ানরা প্রবেশ করে কাউকে তল্লাশি, গ্রেপ্তার বা কোন কিছু বাজেয়াপ্ত করতে পারবে। পশ্চিমবঙ্গের সঙ্গে আসাম ও পাঞ্জাবেও বিএসএফের কাজের পরিধি বাড়ানো হয়।

কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সরব হন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকে এই সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের জন্য চিঠি লেখেন। পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভায় বিএসএফের ক্ষমতা বৃদ্ধির বিরুদ্ধে প্রস্তাব পাশ হয়। বিএসএফের কাজের পরিধি বৃদ্ধির প্রতিবাদে রাজপথে নামেন অনেকে।

অভিনেত্রী অপর্ণা সেনও প্রতিবাদে সরব হন। কলকাতা প্রেসক্লাবে নভেম্বরের সংবাদ সম্মেলনে বিএসএফের কাজের পরিধি বৃদ্ধি নিয়ে প্রশ্ন তোলেন তিনি। প্রশ্ন তোলেন বিএসএফের কাজের পদ্ধতি নিয়েও।

বিজেপির অভিযোগ, অপর্ণা সংবাদ সম্মেলনে বিএসএফকে খুনি, ধর্ষক বলে অপমান করেছেন। এ জন্য তাকে ক্ষমা চাইতে হবে। কেন্দ্রীয় বাহিনীকে অসম্মান করার জন্য সাত দিনের মধ্যে ক্ষমা চাইতে হবে বলে অপর্ণাকে আইনজীবীর নোটিশ পাঠায় বিজেপি। দুমাস হয়ে গেলেও চিঠির কোনো জবাব দেননি অপর্ণা।

বিজেপি নেতা কল্যাণ চৌবে বলেন, ‘বিএসএফ নিয়ে তার মন্তব্য প্রত্যাহার করার জন্য অনুরোধ জানিয়ে চিঠি দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এখনও পর্যন্ত অপর্ণা সেন তার মন্তব্য প্রত্যাহার করেননি, ক্ষমা চাননি, চিঠির কোনো জবাব দেননি। সেজন্য তার বিরুদ্ধে এফআইআর করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
বিজেপিশাসিত রাজ্যে গণতন্ত্রের কঙ্কাল বেরিয়ে পড়েছে: মমতা
বিজেপির বিরুদ্ধে ত্রিপুরায় তৃণমূলের পাশে সিপিএম
‘আগরতলার জন্য নবরত্ন’
কংগ্রেস-বিজেপি বিরোধিতায় সরব মমতা
তৃণমূলে যোগ দিলেন টেনিস তারকা লিয়েন্ডার পেজ

শেয়ার করুন

সীমান্তে ভারতের রাস্তা নিয়ে নেপালের ক্ষোভ

সীমান্তে ভারতের রাস্তা নিয়ে নেপালের ক্ষোভ

ভারত-নেপাল সীমান্তে টহল দিচ্ছে নিরাপত্তা বাহিনী। ছবি: সংগৃহীত

নেপালের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, এই নির্মাণ অবৈধ। ভারতকে কালী নদী এলাকায় রাস্তার একতরফা নির্মাণ ও সম্প্রসারণ বন্ধ করতে হবে।

সীমান্তের কাছে রাস্তা নির্মাণের ঘোষণায় ভারতের ওপর ক্ষুব্ধ হয়েছে নেপাল।

সম্প্রতি ভারতের উত্তরাখণ্ড রাজ্যের লিপুলেখ এলাকায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি রাস্তা সম্প্রসারণের ঘোষণা দেন।

ওই নির্মাণকাজ নিয়ে আপত্তি জানিয়ে রোববার নেপালের পক্ষে বলা হয়েছে, এই নির্মাণ অবৈধ। ভারতকে কালী নদী এলাকায় রাস্তার একতরফা নির্মাণ ও সম্প্রসারণ বন্ধ করতে হবে।

নেপাল ওই এলাকাকে নিজের বলে দাবি করে আসছে।

গত ৩০ ডিসেম্বর উত্তরাখণ্ডের হলদওয়ানিতে বিজেপি আয়োজিত একটি নির্বাচনি সমাবেশে মোদি ঘোষণা দেন, তার সরকার লিপুলেখে নির্মিত রাস্তাটিকে আরও প্রশস্ত করতে চলেছে।

নেপালের তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী এবং মন্ত্রিসভার মুখপাত্র জ্ঞানেন্দ্র বাহাদুর কারকি বলেন, ‘লিম্পিয়াধুরা, লিপুলেখ, কালাপানিসহ কালী নদীর পূর্বের অঞ্চলগুলো নেপালের অবিচ্ছেদ্য অংশ এবং ভারতের উচিত কোনো রাস্তা নির্মাণ বা সম্প্রসারণ বন্ধ করা।’

তিনি বলেন, ‘নেপাল ও ভারতের মধ্যে সীমান্তে যেকোনো বিরোধ ঐতিহাসিক নথি, মানচিত্র এবং নথির ভিত্তিতে কূটনৈতিক চ্যানেলের মাধ্যমে দুই দেশের বিদ্যমান দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের চেতনা অনুযায়ী সমাধান করা উচিত।’

এদিকে শনিবার ভারত-নেপাল সীমান্তের প্রশ্নে কাঠমান্ডুতে ভারতীয় দূতাবাসের মুখপাত্র বলেন, ‘ভারত-নেপাল সীমান্তে ভারত সরকারের অবস্থান সুপরিচিত, সামঞ্জস্যপূর্ণ এবং স্পষ্ট। নেপাল সরকারকে এ তথ্য জানানো হয়েছে।’

কয়েক বছর ধরে ভারতের সঙ্গে সীমান্ত বিরোধে জড়িয়েছে নেপাল। বিতর্কিত বক্তব্যও দেয়া হয়েছে বহুবার। নেপালের প্রধানমন্ত্রী শের বাহাদুর দেউবার আমলে সম্পর্কের উন্নতি হচ্ছে বলে মনে হলেও আবারও লিপুলেখে রাস্তা সম্প্রসারণের ঘোষণায় ক্ষুব্ধ নেপাল।

আরও পড়ুন:
বিজেপিশাসিত রাজ্যে গণতন্ত্রের কঙ্কাল বেরিয়ে পড়েছে: মমতা
বিজেপির বিরুদ্ধে ত্রিপুরায় তৃণমূলের পাশে সিপিএম
‘আগরতলার জন্য নবরত্ন’
কংগ্রেস-বিজেপি বিরোধিতায় সরব মমতা
তৃণমূলে যোগ দিলেন টেনিস তারকা লিয়েন্ডার পেজ

শেয়ার করুন

১২৫ কোটি রুপি প্রতারণা, বিএসএফ কর্তা গ্রেপ্তার

১২৫ কোটি রুপি প্রতারণা, বিএসএফ কর্তা গ্রেপ্তার

অভিযুক্ত বিএসএফের ডেপুটি কমান্ড্যান্ট প্রবীণ যাদব।

বিএসএফের ডেপুটি কমান্ড্যান্ট প্রবীণ যাদব শেয়ার ব্যবসায় জড়িত ছিলেন। সম্প্রতি বিশাল ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন এবং মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে এটি পুনরুদ্ধারের পরিকল্পনা করেছিলেন।

পাঁচ ঠিকাদারের ১২৫ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ ওঠেছে ভারতের সীমান্ত রক্ষী বাহিনীর (বিএসএফ) ডেপুটি কমান্ড্যান্ট প্রবীণ যাদবের বিরুদ্ধে।

রোববার দিল্লির কাছাকাছি গুরুগ্রাম থেকে যাদবকে গ্রেপ্তার করেছে ভারতীয় পুলিশ।

গুরুগ্রাম পুলিশ কমিশনার কে কে রাও গ্রেপ্তারের খবর দিয়ে বলেছেন, ‘ষড়যন্ত্রে যাদবের সঙ্গে ছিলেন তার স্ত্রী মমতা, ব্যাংক ম্যানেজার হিসাবে কর্মরত তার বোন ঋতুরাজ এবং জনৈক দীনেশ কুমার। এদের সকলকেই গ্রেপ্তার করেছে পুলিশের বিশেষ তদন্তকারী দল।’

কে কে রাও জানান, গ্রেপ্তারের সময় যাদব ও তার সহযোগীদের কাছ থেকে ১৩ কোটি রুপিসহ ছয়টি বিলাসবহুল গাড়ি উদ্ধার করা হয়েছে। অভিযুক্তদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

বিএসএফ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে প্রথম অভিযোগটি গত ৮ জানুয়ারি করেছিলেন স্থানীয় নির্মাতা মোনেশ ইরানি। সে সময় তিনি দাবি করেন, ন্যাশনাল সিকিউরিটি গার্ড ক্যাম্পাসে নির্মাণকাজ দেয়ার অজুহাতে যাদব তার কাছ থেকে ৬৫ কোটি রুপি নিয়েছেন।

পরদিন ৯ জানুয়ারি যাদবের বিরুদ্ধে আরেক ঠিকাদার দবিন্দরের অভিযোগ পায় পুলিশ। দবিন্দর দাবি করেন, একই কাজের কথা বলে তার কাছ থেকে ৩৭ কোটি রুপি নিয়েছিলেন যাদব।

পুলিশ কমিশনার রাও জানান, যাদবের বিরুদ্ধে আরও তিনটি একই ধরনের অভিযোগ করা হয়েছিল।

অভিযোগের ভিত্তিতে, যাদবের বিরুদ্ধে তিনটি এফআইআর নথিভুক্ত করা হয় এবং অপরাধ তদন্তের জন্য সহকারী পুলিশ কমিশনার প্রীত পাল সিং সাংওয়ানের নেতৃত্বে একটি বিশেষ তদন্ত দল গঠন করা হয়।

ওই তদন্ত দলই প্রতারণার মাস্টারমাইন্ড যাদব ও তার সহযোগীদের গ্রেপ্তার করেছে। পুলিশ তাদের কাছ থেকে একটি করে বিএমডব্লিউ, হ্যারিয়ার, রেঞ্জ রোভার, জিপ, সাফারি ও ভলভো গাড়িসহ ১৩ কোটি ৮১ লাখ রুপি নগদ উদ্ধার করেছে।

পুলিশ কমিশনার জানিয়েছেন, বিএসএফের ডেপুটি কমান্ড্যান্ট যাদব সম্প্রতি স্বেচ্ছা অবসরে যাওয়ার আবেদন করেছিলেন। শেয়ার ব্যবসায় জড়িত ছিলেন তিনি। সম্প্রতি বিশাল ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছেন এবং মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে এটি পুনরুদ্ধারের পরিকল্পনা করেছিলেন।

সেই পরিকল্পনা থেকেই তিনি তার স্ত্রীর সঙ্গে একজন পরিচালক হিসাবে একটি প্রাইভেট ফার্ম খোলেন এবং গুরুগ্রামের সেক্টর ৮৪-এর স্ফেয়ার মলে অ্যাক্সিস ব্যাংক শাখার ম্যানেজার তার বোন ঋতুরাজকেও পরিকল্পনায় যুক্ত করেছিলেন।

জাল লেটারহেড এবং এনএসজি সিলের মাধ্যমে নিজের ফার্ম এবং এনএসজি ক্যাম্পাসের নামে দুটি ব্যাংক অ্যাকাউন্ট খুলেন যাদব। এনএসজি ক্যাম্পাসে অভ্যন্তরীণ রাস্তা, একটি গুদাম, একটি আবাসিক কমপ্লেক্স, একটি পয়ঃনিষ্কাশন প্ল্যান্ট তৈরির মতো বিভিন্ন কাজ দেয়ার অজুহাতে লোকদের সঙ্গে প্রতারণা করতে শুরু করেছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন:
বিজেপিশাসিত রাজ্যে গণতন্ত্রের কঙ্কাল বেরিয়ে পড়েছে: মমতা
বিজেপির বিরুদ্ধে ত্রিপুরায় তৃণমূলের পাশে সিপিএম
‘আগরতলার জন্য নবরত্ন’
কংগ্রেস-বিজেপি বিরোধিতায় সরব মমতা
তৃণমূলে যোগ দিলেন টেনিস তারকা লিয়েন্ডার পেজ

শেয়ার করুন

কার্টুনিস্ট নারায়ণ দেবনাথের অবস্থা সংকটজনক

কার্টুনিস্ট নারায়ণ দেবনাথের অবস্থা সংকটজনক

নারায়ণ দেবনাথ। ফাইল ছবি

বার্ধক্যজনিত সমস্যার পাশাপাশি তিনি কিডনিসংক্রান্ত জটিলতা ও ফুসফুসে পানি জমাসহ শারীরিক নানা অসুস্থতায় ভুগছেন। বেলভিউ হাসপাতালের চিকিৎসক সমরজিৎ নস্করের নেতৃত্বে গঠিত মেডিক্যাল টিমের তত্ত্বাবধানে তার চিকিৎসা চলছে।

ভারতের বিখ্যাত কার্টুনিস্ট নারায়ণ দেবনাথের শারীরিক অবস্থা সংকটজনক।

কলকাতার বেলভিউ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ৯৭ বছর বয়সী এ শিল্পীকে শনিবার রাত থেকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছে।

বার্ধক্যজনিত সমস্যার পাশাপাশি তিনি কিডনিসংক্রান্ত জটিলতা ও ফুসফুসে পানি জমাসহ শারীরিক নানা অসুস্থতায় ভুগছেন।

বেলভিউ হাসপাতালের চিকিৎসক সমরজিৎ নস্করের নেতৃত্বে গঠিত মেডিক্যাল টিমের তত্ত্বাবধানে নারায়ণ দেবনাথের চিকিৎসা চলছে।

চিকিৎসক সমরজিৎ নস্কর সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘সবাই মিলে সিদ্ধান্ত নিয়ে একটা মাল্টিডিসিপ্লিনারি মেডিক্যাল বোর্ড বসানো হয়েছে। সাপোর্টিভ কেয়ার নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। ওনার রেসপন্স দেখে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে। অবস্থা ক্রিটিক্যাল। আমরা চিকিৎসা করেছি, কিন্তু রেসপন্স পাচ্ছি না।’

গত ২৪ ডিসেম্বর থেকে হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে নারায়ণ দেবনাথের। তার শারীরিক অবস্থার ক্রমশ অবনতি হচ্ছে। ভর্তির সময় তার রক্তে হিমোগ্লোবিন কম ছিল।

জনপ্রিয় বাংলা কমিকস ‘বাটুল দি গ্রেট’, ‘নন্টে ফন্টে’, ‘হাঁদা ভোঁদা’র স্রষ্টা নারায়ণ দেবনাথ ২০১৩ সালে সাহিত্য অ্যাকাডেমি পুরস্কার পান। ২০২০ সালে পদ্মশ্রী সম্মান লাভ করেন তিনি। গত ১৩ জানুয়ারি তার অনবদ্য শিল্পকর্মের জন্য হাসপাতালে গিয়ে শিল্পীর হাতে সেই পদ্মশ্রী পুরস্কার তুলে দেন রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ রায় এবং রাজ্যের অতিরিক্ত মুখ্যসচিব বিপি গোপালিকা।

এর আগে ২০২১ সালের শুরুর দিকে শিল্পী নারায়ণ দেবনাথ করোনা আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নেন।

আরও পড়ুন:
বিজেপিশাসিত রাজ্যে গণতন্ত্রের কঙ্কাল বেরিয়ে পড়েছে: মমতা
বিজেপির বিরুদ্ধে ত্রিপুরায় তৃণমূলের পাশে সিপিএম
‘আগরতলার জন্য নবরত্ন’
কংগ্রেস-বিজেপি বিরোধিতায় সরব মমতা
তৃণমূলে যোগ দিলেন টেনিস তারকা লিয়েন্ডার পেজ

শেয়ার করুন

ভারতে এক দিনে সংক্রমণ ২ লাখ ৬৮ হাজার

ভারতে এক দিনে সংক্রমণ ২ লাখ ৬৮ হাজার

ভারতে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হচ্ছে। ফাইল ছবি

দেশটির ২৮ রাজ্যে এখন পর্যন্ত ওমিক্রন আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে। আর মোট আক্রান্তের ৩ দশমিক ৮৫ শতাংশ সক্রিয় রোগী রয়েছে ভারতে।

করোনাভাইরাস সংক্রমণ বাড়ছেই পাশের দেশ ভারতে। শনিবার দেশটিতে দৈনিক সংক্রমণ ধরা পড়েছে ৩ লাখ ৬৮ হাজার, যার মধ্যে ৬ হাজার ৪১ জন আক্রান্ত হয়েছে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্টে।

ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানায়, এই শনাক্ত নিয়ে ভারতে এখন করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ৬৭ লাখ ছাড়াল।

এনডিটিভির খবরে বলা হয়, দেশটির ২৮ রাজ্যে এখন পর্যন্ত ওমিক্রন আক্রান্ত রোগী পাওয়া গেছে। আর মোট আক্রান্তের ৩ দশমিক ৮৫ শতাংশ সক্রিয় রোগী রয়েছে ভারতে।

এই রোগীর মাধ্যমে ভারতে সংক্রমণের হার ১৪ দশমিক ৭ শতাংশ থেকে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৬ দশমিক ৬৬ শতাংশে।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে মৃত্যুও বেড়েছে। এ সময় করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪০২ জন।

করোনার প্রথম ও দ্বিতীয় ঢেউয়ে ভারতে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত রাজ্য ছিল মহারাষ্ট্র। তৃতীয় ঢেউ শুরুর পরও সবচেয়ে খারাপ অবস্থা মহারাষ্ট্রেই, রাজ্যটিতে শনিবারও সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ধরা পড়েছে।

আরও পড়ুন:
বিজেপিশাসিত রাজ্যে গণতন্ত্রের কঙ্কাল বেরিয়ে পড়েছে: মমতা
বিজেপির বিরুদ্ধে ত্রিপুরায় তৃণমূলের পাশে সিপিএম
‘আগরতলার জন্য নবরত্ন’
কংগ্রেস-বিজেপি বিরোধিতায় সরব মমতা
তৃণমূলে যোগ দিলেন টেনিস তারকা লিয়েন্ডার পেজ

শেয়ার করুন

নতুন সংক্রমণে ভারতে বাড়তে পারে অর্থনীতির ক্ষতি

নতুন সংক্রমণে ভারতে বাড়তে পারে অর্থনীতির ক্ষতি

ভারতে ক্রমবর্ধমান দারিদ্র্য ও বৈষম্য মোকাবিলায় নতুন কর্মসংস্থান বৃদ্ধিতে জোর দিতে হবে। 

২০২১ সালের ডিসেম্বরের প্রথম দিক পর্যন্ত বাংলাদেশ, নেপাল এবং পাকিস্তানে তাদের জনসংখ্যার ২৬ শতাংশেরও কম মানুষকে সম্পূর্ণ টিকা দেয়া হয়েছে।

ভারতে করোনাভাইরাসের ডেল্টা ধরনে আক্রান্ত হয়ে গত বছরের এপ্রিল থেকে জুনের মধ্যে দেশটিতে প্রায় ২ লাখ ৪০ হাজার মানুষের প্রাণহানি হয়েছে। যা দেশটির অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রাতেও প্রভাব ফেলে।

২০২২-এর ফ্ল্যাগশিপ ইউনাইটেড নেশনস ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক সিচুয়েশন অ্যান্ড প্রসপেক্টাস (ডব্লিউএসপি) রিপোর্টে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের অত্যন্ত সংক্রামক ধরন ওমিক্রন ছড়িয়ে যাওয়ায় মানুষের অর্থনৈতিক ক্ষতি আবার বাড়বে।

জাতিসংঘের অর্থনৈতিক ও সামাজিক বিষয়ক বিভাগের ড. লিউ জেনমিন বলেছেন, বিশ্বব্যাপী কোভিড-১৯ প্রতিরোধে একটি সমন্বিত ও টেকসই দৃষ্টিভঙ্গি প্রয়োজন। এর মাঝে করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকার সহজলভ্যতার বিষয়টিও থাকতে হবে। এমনটি না হলে মহামারিতে সৃষ্ট অর্থনৈতিক ক্ষতির টেকসই পুন্রুদ্ধারের ক্ষেত্রে বড় ধরনের ঝুঁকি তৈরি করতে পারে।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর বিষয়ে জাতিসংঘ বলছে, অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে এখানে যথেষ্ট চ্যালেঞ্জ আছে এবং অর্থনীতি নিম্নমুখী হওয়ার ঝুঁকিও রয়েছে।

জাতিসংঘের মতে, এ অঞ্চলে ক্রমবর্ধমান দারিদ্র্য ও বৈষম্য মোকাবিলায় নতুন কর্মসংস্থান বৃদ্ধিতে জোর দিতে হবে।

প্রতিবেদনটিতে আরও বলা হয়েছে, টিকা দেয়ার ধীরগতি এ অঞ্চলটিতে করোনা ভাইরাসের নতুন ধরনের জন্ম দিতে পারে। ২০২১ সালের ডিসেম্বরের প্রথম দিক পর্যন্ত বাংলাদেশ, নেপাল এবং পাকিস্তানে তাদের জনসংখ্যার ২৬ শতাংশেরও কম মানুষকে সম্পূর্ণ টিকা দেয়া হয়েছে। বিপরীতে ভুটান, মালদ্বীপ এবং শ্রীলঙ্কায় সম্পূর্ণ টিকাপ্রাপ্ত জনসংখ্যা ৬৪ শতাংশের ওপরে।

আরও পড়ুন:
বিজেপিশাসিত রাজ্যে গণতন্ত্রের কঙ্কাল বেরিয়ে পড়েছে: মমতা
বিজেপির বিরুদ্ধে ত্রিপুরায় তৃণমূলের পাশে সিপিএম
‘আগরতলার জন্য নবরত্ন’
কংগ্রেস-বিজেপি বিরোধিতায় সরব মমতা
তৃণমূলে যোগ দিলেন টেনিস তারকা লিয়েন্ডার পেজ

শেয়ার করুন

কাশ্মীর প্রেস ক্লাবে অভ্যুত্থান, পুলিশের ভূমিকা নিয়ে শঙ্কা

কাশ্মীর প্রেস ক্লাবে অভ্যুত্থান, পুলিশের ভূমিকা নিয়ে শঙ্কা

কাশ্মীর প্রেসক্লাব দখলের ঘটনায় কঠোর সমালোচনা ও হতবাক প্রকাশ করেছে এডিটর গিল্ড অফ ইন্ডিয়া। ছবি: সংগৃহীত

দ্য এডিটরস গিল্ড অফ ইন্ডিয়া কাশ্মীর প্রেস ক্লাব দখলের ঘটনায় কঠোর সমালোচনা করে রোববার এক বিবৃতিতে জানায়, ‘১৫ জানুয়ারি সশস্ত্র পুলিশ সদস্যদের সহায়তায় উপত্যকার বৃহত্তম সাংবাদিক সমিতি, কাশ্মীর প্রেস ক্লাবের অফিস এবং ব্যবস্থাপনা যেভাবে একদল সাংবাদিক জোরপূর্বক দখল করে নিয়েছে। তাতে এডিটর গিল্ড অফ ইন্ডিয়া হতবাক ও শঙ্কিত।’

কাশ্মীরে সাংবাদিকদের বৃহত্তম সংগঠন-দ্য কাশ্মীর প্রেস ক্লাবে শনিবারের অভ্যুত্থানে কয়েকজন বিতর্কিত সাংবাদিক সশস্ত্র পুলিশ সদস্যের যোগসাজসে নির্বাচিত কমিটিকে সরিয়ে ক্লাবের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে।

দ্য এডিটরস গিল্ড অফ ইন্ডিয়া ক্লাবের এ ঘটনায় ক্ষোভ জানিয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অবৈধ অন্তর্বর্তী কমিটি ক্লাবটিকে বন্ধ করে দিয়েছে।

জম্মু ও কাশ্মীরের তৎকালীন রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী ওমর আবদুল্লাহ একে ‘রাষ্ট্রীয় মদদপুষ্ট অভ্যুত্থান’ বলে অভিহিত করেছেন।

শনিবার শ্রীনগরে পুলিশের সাহায্যে অভ্যুত্থানের মাধ্যমে কাশ্মীর উপত্যকার সাংবাদিকদের বৃহত্তম সংগঠন কাশ্মীর প্রেস ক্লাবের দখল নিয়েছে মুষ্টিমেয় সাংবাদিক।

জম্মু ও কাশ্মীর সরকার, জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) এর প্রতিকূল প্রতিবেদনের উদ্ধৃতি দিয়ে ক্লাবের রেজিস্ট্রেশন স্থগিত করার একদিন পরে বিতর্কিত ‘অভ্যুত্থান’ হয়েছে।

দ্য এডিটরস গিল্ড অফ ইন্ডিয়া কাশ্মীর প্রেস ক্লাবের ঘটনায় কঠোর সমালোচনা করে রোববার এক বিবৃতিতে জানায়, ‘১৫ জানুয়ারি সশস্ত্র পুলিশ সদস্যদের সহায়তায় উপত্যকার বৃহত্তম সাংবাদিক সমিতি, কাশ্মীর প্রেস ক্লাবের অফিস এবং ব্যবস্থাপনা যেভাবে একদল সাংবাদিক জোরপূর্বক দখল করে নিয়েছে। তাতে এডিটর গিল্ড অফ ইন্ডিয়া হতবাক ও শঙ্কিত।’

উল্লেখ্য, গত ২৯ ডিসেম্বর প্রেসক্লাবের রেজিস্ট্রেশন নবায়ন করা হলেও, ১৩ জানুয়ারি জম্মু-কাশ্মীর প্রশাসন তা প্রত্যাহার করে। গিল্ড বলেছে যে.....একইভাবে ‘কাশ্মীর প্রেস ক্লাবের রেজিস্ট্রেশন স্থগিত করার স্বেচ্ছাচারী আদেশে আমরা উদ্বিগ্ন, যা ঘটেছে ১৪ জানুয়ারি ক্লাবটিকে সশস্ত্র দখল নেবার একদিন আগে।’

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘আরও বিরক্তিকরভাবে, রাজ্য পুলিশ কোনও উপযুক্ত পরোয়ানা বা কাগজপত্র ছাড়াই ক্লাব প্রাঙ্গণে প্রবেশ করেছিল এবং এই অভ্যুত্থানে নির্লজ্জভাবে জড়িত ছিল, যার মধ্যে একদল লোক ক্লাবের স্ব-ঘোষিত ব্যবস্থাপনায় পরিণত হয়েছে।’

সশস্ত্র বাহিনী কীভাবে ক্লাব প্রাঙ্গণে প্রবেশ করল সে বিষয়ে স্বাধীন তদন্তেরও দাবি জানিয়েছে এডিটরস গিল্ড।

মুম্বাই প্রেস ক্লাব (এমপিসি), নিরাপত্তা বাহিনীর সঙ্গে একযোগে আইনত নির্বাচিত ব্যবস্থাপনা সংস্থা থেকে কাশ্মীর প্রেস ক্লাবের (কেপিসি) জোরপূর্বক দখল নেওয়ার নিন্দা করেছে।

বিবৃতিতে এমপিসি জম্মু ও কাশ্মীর প্রশাসন ক্লাবের নির্বাচনী প্রক্রিয়াকে বিঘ্নিত করার জন্য ক্ষোভ প্রকাশ করেছে।

দিল্লির প্রেস ক্লাব অফ ইন্ডিয়া এক বিবৃতিতে কাশ্মীর প্রেস ক্লাবের সাম্প্রতিক ঘটনা নিয়ে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

বিবৃতিতে, কাশ্মীর প্রেস ক্লাবে গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের দাবি জানিয়ে জম্মু ও কাশ্মীরের লেফটেন্যান্ট গভর্নরের কাছে আবেদন করা হয়েছে, পুরো বিষয়টি তদন্ত করে দেখতে এবং রেজিস্ট্রেশন হালনাগাদ করে ক্লাবের নির্বাচন প্রক্রিয়া সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করানোর জন্য ব্যবস্থা গ্রহণে।

আরও পড়ুন:
বিজেপিশাসিত রাজ্যে গণতন্ত্রের কঙ্কাল বেরিয়ে পড়েছে: মমতা
বিজেপির বিরুদ্ধে ত্রিপুরায় তৃণমূলের পাশে সিপিএম
‘আগরতলার জন্য নবরত্ন’
কংগ্রেস-বিজেপি বিরোধিতায় সরব মমতা
তৃণমূলে যোগ দিলেন টেনিস তারকা লিয়েন্ডার পেজ

শেয়ার করুন