ঢামেকের সামনে পড়ে ছিল নারীর মরদেহ

player
ঢামেকের সামনে পড়ে ছিল নারীর মরদেহ

এসআই কাউসার আহমেদ বলেন, ‘কম্বল দিয়ে মোড়ানো ছিল মরদেহ। আমরা সিআইডি ক্রাইম সিনকে খবর দিয়েছি। ফিঙ্গার প্রিন্টের মাধ্যমে তার পরিচয় শনাক্ত করা যাবে বলে ধারণা করছি।’

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল ভবন এলাকায় এক নারীর মরদেহ উদ্ধার করেছে শাহবাগ থানা পুলিশ।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে হাসপাতালের দুই নম্বর ভবনের মসজিদের পাশে ফুটপাত থেকে প্রায় ৬০ বছর বয়সী ওই নারীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

শাহবাগ থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই)কাউসার আহমেদ ভূঁইয়া বলেন, ‘আমরা খবর পেয়ে হাসপাতালের নতুন ভবনের মসজিদের পাশে ফুটপাত থেকে এক বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার করি। পরে আইনি প্রক্রিয়া শেষে সেটি ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘হাসপাতালের আশেপাশের লোকজনের কাছে থেকে জানতে পেরেছি, এই এলাকায় তিনি ভবঘুরে ছিলেন। আসরের নামাজের সময় পর্যন্ত ওই বৃদ্ধা নড়াচড়া করছিলেন, কিছুক্ষণ পরে দেখি আর নড়াচড়া করেন না। তিনি নিস্তেজ হয়ে পড়ে থাকলে আমাদেরকে খবর দেয়া হয়। আমরা এসে ওই বৃদ্ধার মরদেহ উদ্ধার করি। নিহতের নাম-পরিচয় জানা যায়নি।’

এসআই কাউসার আহমেদ বলেন, ‘কম্বল দিয়ে মোড়ানো ছিল মরদেহ। আমরা সিআইডি ক্রাইম সিনকে খবর দিয়েছি। ফিঙ্গার প্রিন্টের মাধ্যমে তার পরিচয় শনাক্ত করা যাবে বলে ধারণা করছি।’

আরও পড়ুন:
দেশে ফিরেছে নারী দল
ছাদ থেকে পড়ে নারীর মৃত্যু
নারী নির্যাতন নির্মূল না হওয়ায় আক্ষেপ পরিকল্পনামন্ত্রীর
আইসিসির চার্টার্ড বিমানে ফিরছেন নিগার-সালমারা
ওমিক্রনে বাতিল বাছাইপর্ব, বিশ্বকাপে বাংলাদেশ নারী দল

শেয়ার করুন

মন্তব্য

নিখোঁজের আগের ঘটনা জানালেন শিমুর বোন

নিখোঁজের আগের ঘটনা জানালেন শিমুর বোন

রাইমা ইসলাম শিমু (বাঁয়ে) ও তার ছোট বোন ফাতেমা (ডানে)। ছবি: সংগৃহীত

রোববার থেকে নিখোঁজ ছিলেন অভিনেত্রী শিমু। সোমবার পাওয়া যায় তার মরদেহ। এ ঘটনাকে হত্যাকাণ্ড বলছে পুলিশ। শিমুর নিখোঁজ হওয়ার পরের সময়ের বর্ণনা দিলেন তার বোন ফাতেমা।

রোববার থেকে হঠাৎ করেই পাওয়া যাচ্ছিল না অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমুকে। খোঁজ না পেয়ে তার ছোট বোন ফাতেমাসহ পরিবারের সদস্যরা কলাবাগান থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। সোমবার দুপুরে কেরাণীগঞ্জ থেকে শিমুর মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

মরদেহটি প্রথমে অজ্ঞাত হিসেবেই ধরা হচ্ছিল। পরে আঙুলের ছাপ ও পরিবারের সদস্যদের মাধ্যমে জানা যায় বস্তাবন্দি মরদেহটি শিমু।

নিখোঁজের আগে কী হয়েছিল তা নিউজবাংলাকে জানালেন শিমুর বোন ফাতেমা। বললেন, ‘আমরা জানতে পারি রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে, ওর (শিমু) খুব কাছের একজন বন্ধু কল করে আমাকে জানায়, শিমুকে অনেক্ষণ ফোনে পাওয়া যাচ্ছে না। সে আমার কাছে জানতে চায়, আমার সঙ্গে শিমুর কথা হয়েছে কি না। আমি বলি, না, আমার সঙ্গে কথা হয় নাই। মেসেঞ্জারে কল করেছিলাম, কিন্তু ধরেনি।

‘এরপর আমি আমার বোনের মেয়েকে, মানে শিমুর মেয়েকে কল দিলাম। সে বলল, আম্মু (শিমু) সকালে বের হয়েছে। আমি বললাম, সকালে বের হওয়ার পরে তোমাদের সঙ্গে কী আর কোনো কথা হয়েছে। সে বলে যে, না, কথা হয় নাই।’

ফাতেমা জানান, এরপর থেকে শিমুর ফোনে একাধিকবার কল করেও সাড়া পাওয়া যাচ্ছিল না।

তিনি বলেন, ‘এর মধ্যে আমি, আমার ভাই, তার স্ত্রীকে নিয়ে বের হয়ে গেছি। অনেক জায়গায় ফোন করেছি, কারও সঙ্গেই কথা হয় নাই। ওর ক্লোজ একটা বান্ধবী আছে, যার নাম আনমন, উনাকে কল দিলাম, বললাম বিষয়টা।’

আনমন ফাতেমাকে জানান, তিনি রোববার সকালে ১০টা ১৫ থেকে ২০ মিনিটের মধ্যে শিমুকে কল করেছিলেন। ফোন খোলাও পাওয়া গেছে, কিন্তু রিসিভ করেননি।

এর মধ্যে রাত ১১টার দিকে কলাবাগান থানায় চলে যান ফাতেমা। বোন শিমু নিখোঁজ জানিয়ে একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। এরপর ঢাকা মেডিক্যাল, মিডফোর্ট হাসাপাতালে খবর নেন তারা। কিন্তু কোনো হদিস মেলেনি।

রোববার শেষে হয়ে সোমবার

শিমুর বোন ফাতেমা বলেন, ‘আমরা ভোর থেকেই আবার বোনকে খোঁজা শুরু করি। এক সময় পুলিশের এস আই আমাদেরকে জানান, শিমুর ফোন বন্ধ হয়েছে রোববার সকাল ১০টা ২৬ মিনিটে।’

ফাতেমার ধারণার সঙ্গে মিলে যায় ফোন বন্ধের হিসাবটা। তিনি জানান, রোববার শিমু বাসা থেকে বের হয়েছে সাড়ে ৯টা থেকে ১০টার মধ্যে। ফোনটাও অফ হয়েছে ওই টাইমে।

ফাতেমা বলেন, ‘পুলিশ শিমুর শেষ অবস্থান জানাতে পারেনি। এর মধ্যে আমি র‌্যাবে, ডিবি ও সন্ধ্যায় সিআইডিতে কথা বলি। সন্ধ্যায় আমাদেরকে একজন ফোন করে বলেন লাশ পাওয়া গেছে।’

কোথায় যাচ্ছিলেন শিমু

ফাতেমা বলেন, ‘আমার বোন জামাই (শিমুর স্বামী নোবেল) যেটা বলল, রোববার সকালে তাকে শিমু ডাক দিয়ে বলেছে, তুমি ওঠো বাজারে যাবো। বুয়া আসলে তুমি বলবা যে, আধাঘণ্টা পরে আসতে। কিন্তু শিমু আর বাজারে যায়নি। কিছুক্ষণ পরে তার স্বামীকে বলে, আমি একটু মাওয়া যাবো, দেরি হইতে পারে। এটা বলে বের হয়ে গেছে।’

কোনো দ্বন্দ্ব?

ফাতেমা জানান, তার সঙ্গে প্রতিদিনই কথা হতো শিমুর। কিন্তু তাদের পরিবারে কোনো দ্বন্দ্ব-কলহ আছে কি না সে ব্যাপারে কখনও কথা হয়নি।

তিনি বলেন, ‘আমাকে এভাবে কিছু বলে নাই যে কারও সঙ্গে দ্বন্দ্ব আছে কি না। সে তো মিডিয়াকর্মী। আমার সঙ্গে প্রতিদিনই কথা হতো, কিন্তু থাকে না যে হার্ড দ্বন্দ্ব এ রকম কোনো কিছু কখনও বলেনি।

‘কাজের ক্ষেত্রে অনেকের সঙ্গে দ্বন্দ থাকতে পারে। সেটা অন্য ইস্যু, ওদের এফডিসিতে যেটা চলে, সেটা অন্যরকম। কিন্তু আমার বোনকে মার্ডার করে ফেলতে পারে, এ রকম কোনো দ্বন্দ্বের কথা আমার জানা নাই।’

পুলিশ যা বলছে

ঘটনার রাতেই শিমুর স্বামী খন্দকার শাখাওয়াত আলীম নোবেল ও তার বাল্যবন্ধু এসএমওয়াই আব্দুল্লাহ ফরহাদকে আটক করে পুলিশ। তাদের প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে বাহিনীটি জানতে পেরেছে, পারিবারিক ও দাম্পত্য কলহের কারণে জীবন দিতে হয়েছে শিমুকে।

আর এই হত্যার কথা স্বীকার করেছেন নোবেল। বন্ধুকে নিয়ে মরদেহটি গুম করতে চেষ্টা করেছিলেন তিনি।

এ বিষয়ে ব্রিফিংয়ে ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যে যে গাড়ি ব্যবহার করে লাশ গুমের চেষ্টা করা হয়েছে সেই গাড়িটি জব্দ করে থানায় নিয়েছি এবং অন্যান্য আলামত সংগ্রহ করেছি। মডেল শিমুর স্বামী নোবেল এবং তার বাল্যবন্ধু ফরহাদ বর্তমানে থানা হেফাজতে আছে। মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।’

আরও পড়ুন:
দেশে ফিরেছে নারী দল
ছাদ থেকে পড়ে নারীর মৃত্যু
নারী নির্যাতন নির্মূল না হওয়ায় আক্ষেপ পরিকল্পনামন্ত্রীর
আইসিসির চার্টার্ড বিমানে ফিরছেন নিগার-সালমারা
ওমিক্রনে বাতিল বাছাইপর্ব, বিশ্বকাপে বাংলাদেশ নারী দল

শেয়ার করুন

দাম্পত্য কলহে অভিনেত্রী শিমুকে হত্যায় স্বামী: পুলিশ

দাম্পত্য কলহে অভিনেত্রী শিমুকে হত্যায় স্বামী: পুলিশ

স্বামী খন্দকার শাখাওয়াত আলীম নোবেলের সঙ্গে অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমু। ছবি: সংগৃহীত

ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার জানান, শিমুকে হত্যার কথা প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেছেন তার স্বামী নোবেল। মরদেহটি গুম করার চেষ্টা করা হয়েছিল।

পারিবারিক বিষয়ে টানাপোড়েন ও দাম্পত্য কলহের জেরে অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমুকে হত্যা করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। বাহিনীটির দাবি, শিমুর স্বামী ও তার সহযোগীকে আটকের পর প্রাথমিক বিজ্ঞাসাবাদে তারা এ তথ্য দিয়েছেন।

রাজধানীর কেরানীগঞ্জ থেকে সোমবার শিমুর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে রাতেই তার স্বামী খন্দকার শাখাওয়াত আলীম নোবেল ও তার বন্ধু এসএমওয়াই আব্দুল্লাহ ফরহাদকে আটক করে পুলিশ।

মঙ্গলবার দুপুরে এ বিষয়ে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তুলে ধরেন ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার। তিনি জানান, শিমু হত্যার কথা প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেছেন তার স্বামী নোবেল। মরদেহটি গুম করার চেষ্টা করা হয়েছিল।

এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এই হত্যাকাণ্ডে শিমুর স্বামী নোবেল ও তার বাল্যবন্ধু ফরহাদের সংশ্লিষ্টতার তথ্য পাওয়া গেছে। বিভিন্ন পারিবারিক বিষয়কে কেন্দ্র করে স্বামী নোবেলের সঙ্গে দাম্পত্য কলহ শুরু হয় শিমুর। এর জেরে গত ১৬ জানুয়ারি সকাল ৭টা থেকে ৮টার মধ্যে তাকে খুন করা হয়ে থাকতে পারে।

মারুফ হোসেন বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যে যে গাড়ি ব্যবহার করে লাশ গুমের চেষ্টা করা হয়েছে সেই গাড়িটি জব্দ করে থানায় নিয়েছি এবং অন্যান্য আলামত সংগ্রহ করেছি। মডেল শিমুর স্বামী নোবেল এবং তার বাল্যবন্ধু ফরহাদ বর্তমানে থানা হেফাজতে আছে। মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।’

রাজধানীর গ্রিন রোডের বাসিন্দা অভিনেত্রী শিমুকে পাওয়া যাচ্ছে না জানিয়ে রোববার তার পরিবারের পক্ষ থেকে কলাবাগান থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়। সোমবার দুপুরে কেরানীগঞ্জ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

প্রথমে অজ্ঞাত থাকলেও হাতের আঙুলের ছাপ ও পরিবারের সদস্যদের মাধ্যমে শিমুর পরিচয় নিশ্চিত করা হয়। তার মরদেহ রাখা আছে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতাল মর্গে।

১৯৯৮ সালে কাজী হায়াৎ পরিচালিত ‘বর্তমান’ সিনেমা দিয়ে রুপালি পর্দায় শিমুর অভিষেক হয়। পরে সিনেমার পাশাপাশি অসংখ্য নাটকেও অভিনয় করেছেন।

সম্প্রতি ফ্যামিলি ক্রাইসিস নামের একটি ধারাবাহিক নাটকে কাজ করেছেন তিনি।

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি কর্তৃক ১৮৪ জন ভোটাধিকার হারানো শিল্পীর মধ্যে শিমুও ছিলেন। ভোটাধিকার ফিরে পেতে চলমান আন্দোলনে সোচ্চার ছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন:
দেশে ফিরেছে নারী দল
ছাদ থেকে পড়ে নারীর মৃত্যু
নারী নির্যাতন নির্মূল না হওয়ায় আক্ষেপ পরিকল্পনামন্ত্রীর
আইসিসির চার্টার্ড বিমানে ফিরছেন নিগার-সালমারা
ওমিক্রনে বাতিল বাছাইপর্ব, বিশ্বকাপে বাংলাদেশ নারী দল

শেয়ার করুন

ডেমরায় আগুনে পুড়ল জুতার কারখানা

ডেমরায় আগুনে পুড়ল জুতার কারখানা

ফাইল ছবি

ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে জানানো হয়, মঙ্গলবার দুপুর ১টা ৫ মিনিটে তারা আগুন লাগার খবর পান। ঘটনাস্থলে ১টা ২৮ মিনিটে পৌঁছায় ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা। আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে ১টা ৫৭ মিনিটে।

রাজধানীর ডেমরায় রাজমহল সিনেমা হলের পাশে একটি জুতার কারখানা আগুনে পুড়েছে। ফায়ার সার্ভিসের পাঁচটি ইউনিটের প্রায় ২০ মিনিটের চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।

ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, দুপুরে ১টা ৫ মিনিটে তারা আগুন লাগার খবর পান। ঘটনাস্থলে ১টা ২৮ মিনিটে পৌঁছায় ফায়ার সার্ভিসের সদস্যরা। আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে ১টা ৫৭ মিনিটে।

জুতার কারখানাটি ছিল টিনশেড ভবন ছিল বলে জানান বাহিনীটির উপ পরিচালক শাহজাহান শিকদার। তিনি বলেন, প্রথমে দুইটি ইউনিট পাঠানো হয়। পরে ইউনিট বাড়ানো হয়। পোস্তগোলা থেকে আরও দুটি এবং হেডকোয়ার্টার থেকে বিশেষ পানিবাহী গাড়ি ঘটনাস্থলে পাঠানো হয়।

আগুনে লাগার কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ তাৎক্ষণিক জানা যায়নি।

আরও পড়ুন:
দেশে ফিরেছে নারী দল
ছাদ থেকে পড়ে নারীর মৃত্যু
নারী নির্যাতন নির্মূল না হওয়ায় আক্ষেপ পরিকল্পনামন্ত্রীর
আইসিসির চার্টার্ড বিমানে ফিরছেন নিগার-সালমারা
ওমিক্রনে বাতিল বাছাইপর্ব, বিশ্বকাপে বাংলাদেশ নারী দল

শেয়ার করুন

ছাত্রীকে যৌন হয়রানি: শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন জমার নির্দেশ

ছাত্রীকে যৌন হয়রানি: শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন জমার নির্দেশ

হলি ফ্যামিলি মেডিক্যাল কলেজ। ছবি: সংগৃহীত

তদন্ত কর্মকর্তা সালমান রহমান নিউজবাংলাকে জানান, ‘ঘটনাস্থল (পিও) পরিদর্শন করেছি। তদন্তের কাজের অগ্রগতি আছে, এখনও শেষ হয়নি।’

রাজধানীর হলি ফ্যামিলি মেডিক্যাল কলেজের এক ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে রমনা থানায় করা মামলায় প্রতিষ্ঠানটির সহকারী অধ্যাপক ডা. সালাউদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে তদন্ত প্রতিবেদন আগামী ৬ ফেব্রুয়ারি জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

মঙ্গলবার মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে জমা দেয়ার কথা ছিল।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রমনা মডেল থানার উপপরিদর্শক সালমান রহমান তদন্ত প্রতিবেদন দিতে পারেননি। এ জন্য ঢাকার মহানগর হাকিম মোহনা আলমগীর দ্বিতীয় দফা তারিখ পিছিয়ে দেন।

তদন্ত কর্মকর্তা সালমান রহমান নিউজবাংলাকে জানান, ‘ঘটনাস্থল (পিও) পরিদর্শন করেছি। তদন্তের কাজের অগ্রগতি আছে, এখনও শেষ হয়নি।’

এর আগে ঢাকার মহানগর হাকিম শফি উদ্দিন গত ১৩ জানুয়ারি অভিযুক্ত সালাউদ্দিনের জামিন আদেশ দেন।

বিষয়টি রমনা থানার (নারী ও শিশু) আদালতের সাধারণ নিবন্ধন শাখার কর্মকর্তা পুলিশের উপপরিদর্শক মকবুলুর রহমান।

গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর রমনা থানায় সহকারী অধ্যাপক ডা. সালাউদ্দিন চৌধুরীর বিরুদ্ধে মামলা করেন এক ছাত্রী। গত ২৯ অক্টোবর ডা. সালাউদ্দিনকে গ্রেপ্তার করে কারাগারে পাঠানো হয়।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, মেডিক্যাল কলেজের ফার্মাকোলজি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. সালাউদ্দিন চৌধুরী গত বছরের ৯ সেপ্টেম্বর মেসেঞ্জারে ওই ছাত্রীকে বিভিন্ন ধরনের যৌন হয়রানিমূলক মেসেজ পাঠান। এ সময় ছাত্রীকে ‘কুপ্রস্তাব’ দেন। এতে রাজি না হওয়ায় এক শিক্ষাবর্ষে অনেক বছর আটকে রাখার হুমকি দেন ওই শিক্ষক। এরপর কলেজে বিভিন্নভাবে ডেকে তার দেয়া মেসেজ ফোন থেকে মুছে ফেলতে এবং তার সঙ্গে আলাদাভাবে দেখা করতে বলেন।

ওই শিক্ষক অপরিচিত নম্বর থেকে ফোন দিয়ে ছাত্রীকে ভয় দেখান। এসব অভিযোগে ছাত্রী প্রথমে উত্তরা পশ্চিম থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন। পরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে রমনা থানায় মামলা করেন।

আরও পড়ুন:
দেশে ফিরেছে নারী দল
ছাদ থেকে পড়ে নারীর মৃত্যু
নারী নির্যাতন নির্মূল না হওয়ায় আক্ষেপ পরিকল্পনামন্ত্রীর
আইসিসির চার্টার্ড বিমানে ফিরছেন নিগার-সালমারা
ওমিক্রনে বাতিল বাছাইপর্ব, বিশ্বকাপে বাংলাদেশ নারী দল

শেয়ার করুন

অভিনেত্রী শিমুর অস্বাভাবিক মৃত্যু, স্বামী আটক

অভিনেত্রী শিমুর অস্বাভাবিক মৃত্যু, স্বামী আটক

অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমু। ছবি: সংগৃহীত

কেরানীগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহাবুদ্দিন কবির নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ ঘটনায় চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। যেটার তদন্ত চলমান আছে। বেলা ২টায় ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার তার নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানাবেন।’

অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমুর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধারের পর তার স্বামী সাখাওয়াত নোবেল ও তার বন্ধু ফরহাদকে আটক করেছে পুলিশ।

তাদের আটকের বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন কেরানীগঞ্জ মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুল মালেক। তবে তাদের কোথা থেকে আটক করা হয়েছে, তা জানানো হয়নি।

এই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, ‘এখনও তাদের থানায় আনা হয়নি। তাদের নিয়ে অভিযান চলছে। তবে এখনও কোনো মামলা হয়নি। প্রক্রিয়াধীন আছে।’

তবে শিমুর ভাই সায়দুল ইসলাম খোকন সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, নোবেলের গাড়ির পেছনে রক্ত দেখতে পেয়ে তাকে ও সঙ্গে থাকা তার বন্ধু ফরহাদকে আটক করে কেরানীগঞ্জ থানায় সোপর্দ করা হয়েছে।

কেরানীগঞ্জ সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শাহাবুদ্দিন কবির নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ ঘটনায় চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। যেটার তদন্ত চলমান আছে। বেলা ২টায় ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার তার নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে বিস্তারিত জানাবেন।’

রাজধানীর গ্রিন রোডের বাসিন্দা অভিনেত্রী শিমুকে পাওয়া যাচ্ছে না জানিয়ে রোববার তার পরিবারের পক্ষ থেকে কলাবাগান থানায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়। সোমবার দুপুরে কেরানীগঞ্জ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

প্রথমে অজ্ঞাত থাকলেও হাতের আঙুলের ছাপ ও পরিবারের সদস্যদের মাধ্যমে শিমুর পরিচয় নিশ্চিত করা হয়। তার মরদেহ রাখা আছে স্যার সলিমুল্লাহ মেডিক্যাল কলেজ ও মিটফোর্ড হাসপাতাল মর্গে।

কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি আবু সালাম মিয়া বলেন, ‘সোমবার দুপুরের দিকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। পরে স্বজনরা এসে তাকে শনাক্ত করেছেন। প্রাথমিকভাবে এটিকে হত্যাকাণ্ড মনে হচ্ছে। তবে ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে কিভাবে তার মৃত্যু হয়েছে।’

১৯৯৮ সালে কাজী হায়াৎ পরিচালিত ‘বর্তমান’ সিনেমা দিয়ে রুপালি পর্দায় শিমুর অভিষেক হয়। পরে সিনেমার পাশাপাশি অসংখ্য নাটকেও অভিনয় করেছেন।

সম্প্রতি ফ্যামিলি ক্রাইসিস নামের একটি ধারাবাহিক নাটকে কাজ করেছেন তিনি।

চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি কর্তৃক ১৮৪ জন ভোটাধিকার হারানো শিল্পীর মধ্যে শিমুও ছিলেন। ভোটাধিকার ফিরে পেতে চলমান আন্দোলনে সোচ্ছার ছিলেন তিনি।

আরও পড়ুন:
দেশে ফিরেছে নারী দল
ছাদ থেকে পড়ে নারীর মৃত্যু
নারী নির্যাতন নির্মূল না হওয়ায় আক্ষেপ পরিকল্পনামন্ত্রীর
আইসিসির চার্টার্ড বিমানে ফিরছেন নিগার-সালমারা
ওমিক্রনে বাতিল বাছাইপর্ব, বিশ্বকাপে বাংলাদেশ নারী দল

শেয়ার করুন

এবার করোনা আক্রান্ত অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল

এবার করোনা আক্রান্ত অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল

রাষ্ট্রের অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল এস কে মোর্শেদ। ছবি: সংগৃহীত

এস কে মোর্শেদ বলেন, ‘গতকাল বিকেলে করোনা পজিটিভ রিপোর্ট পাই। এরপর থেকে বাসায় আইসোলেশনে আছি, তবে সুস্থ আছি।’

এবার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল শেখ মোহাম্মাদ (এস কে) মোর্শেদ।

করোনা আক্রান্তের বিষটি মঙ্গলবার নিউজবাংলাকে জানান তিনি।

গত রোববার করোনা আক্রান্ত হন রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিনও।

এস কে মোর্শেদ বলেন, ‘গতকাল বিকেলে করোনা পজিটিভ রিপোর্ট পাই। এর পর থেকে বাসায় আইসোলেশনে আছি, তবে সুস্থ আছি।’

গত কয়েক দিন ধরেই দেশে বাড়ছে করোনা সংক্রমণ। করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় আবারও ভার্চুয়াল কোর্ট পরিচালনার কথা ভাবার তথ্য জানিয়েছেন প্রধান বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী।

তিনি জানান, এরই মধ্যে হাইকোর্ট বিভাগের ১৩ বিচারপতি ও অধস্তন আদালতের ৩৬ জন বিচারক করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।

আরও পড়ুন:
দেশে ফিরেছে নারী দল
ছাদ থেকে পড়ে নারীর মৃত্যু
নারী নির্যাতন নির্মূল না হওয়ায় আক্ষেপ পরিকল্পনামন্ত্রীর
আইসিসির চার্টার্ড বিমানে ফিরছেন নিগার-সালমারা
ওমিক্রনে বাতিল বাছাইপর্ব, বিশ্বকাপে বাংলাদেশ নারী দল

শেয়ার করুন

আজীবন বাংলাদেশের অলিখিত রাষ্ট্রদূত থাকব: মিলার

আজীবন বাংলাদেশের অলিখিত রাষ্ট্রদূত থাকব: মিলার

ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত রবার্ট আর্ল মিলার। ফাইল ছবি

সোমবার এক বিদায়ী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রতি এই ভালোবাসার কথা জানান বাংলাদেশে যুক্তরাষ্ট্রের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত রবার্ট আর্ল মিলার।

স্বেচ্ছায় আন-অফিশিয়ালি আজীবন বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করে যাবেন ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের বিদায়ী রাষ্ট্রদূত রবার্ট আর্ল মিলার।

সোমবার এক বিদায়ী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের প্রতি এই ভালোবাসার কথা জানান রাষ্ট্রদূত মিলার। আমেরিকান চেম্বার অব কমার্স ইন বাংলাদেশ (অ্যামচেম) অনলাইন প্ল্যাটফর্মে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

বিদায়ী অনুষ্ঠানে মিলার সম্ভব হলে আবারও রাষ্ট্রদূত হয়ে বাংলাদেশে আসার ইচ্ছা প্রকাশ করেন। একই সঙ্গে তিনি এটাও জানান, সরকারি চাকরি থেকে অবসরে চলে যাওয়ায় তা আর সম্ভব নয়।

তবে দ্বিতীয় বার এ দেশের রাষ্ট্রদূত হওয়ার সুযোগ না থাকলেও আন-অফিশিয়ালি (অলিখিতভাবে) এ দেশের রাষ্ট্রদূত হয়ে সারা জীবন কাজ করার প্রতিশ্রুতি দেন তিনি।

রাষ্ট্রদূত হিসেবে বাংলাদেশে তিন বছরের বেশি সময় দায়িত্ব পালন শেষে এ মাসেই ঢাকা ছাড়ছেন আর্ল মিলার। ইতিমধ্যে সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তির সঙ্গে বিদায়ী সাক্ষাৎ করতে শুরু করেছেন তিনি। ২০১৮ সালের ১৮ নভেম্বর ঢাকায় রাষ্ট্রদূত হিসেবে যোগ দেন তিনি। তার স্থলাভিষিক্ত হচ্ছেন অর্থনীতি ও বাণিজ্য বিষয়ক কূটনীতিক পিটার হার্স। তিনি ঢাকায় আসার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

মিলার বলেন, ‘আমার চাকরি জীবনের এই শেষ অ্যাসাইনমেন্টটি ছিল সম্মানের। গত তিন বছর ধরে এ দেশে কাজ করতে পারা আমার জন্য অনেক সম্মানের। দারুণ স্মৃতি নিয়ে দেশে ফিরছি।

'আমি এবং আমার পরিবারের প্রতি এ দেশের মানুষের ভালোবাসায় আমি সম্মানিত, কৃতজ্ঞ।’

ঢাকার প্রতি তার পরিবারের ভালোবাসার কথা জানিয়ে মিলার বলেন, 'দুই মাস আগে ঢাকায় আসা তার ছেলে আলেকজান্ডার এন্ড্রো ঢাকা ছাড়ছে না। বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিতে (ডব্লিউএফপি) সে কাজ নিয়েছে। আরও এক বছর ঢাকায় থাকবে সে।

অ্যামচেম সভাপতি সৈয়দ এরশাদ আহম্মেদ অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন। সংগঠনের সাবেক সভাপতি আফতাব-উল-ইসলাম বলেন, আর্ল মিলারের দায়িত্বকালে বাংলাদেশের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্য সম্পর্ক উন্নত হয়েছে। বাণিজ্যসংক্রান্ত বিভিন্ন বিরোধ নিষ্পত্তি করেছেন তিনি। সম্প্রতি দুই দেশের মধ্যকার রাজনৈতিক সমস্যা সমাধানেও ভূমিকা রাখতে নতুন রাষ্ট্রদূতের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। অবশ্য এ বিষয়ে বক্তব্যে কোনো কথা বলেননি আর্ল মিলার।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে অ্যামচেমের সাবেক দুই সভাপতি নুরুল ইসলাম এবং ফরেস্ট কুকসন বক্তব্য দেন।

আরও পড়ুন:
দেশে ফিরেছে নারী দল
ছাদ থেকে পড়ে নারীর মৃত্যু
নারী নির্যাতন নির্মূল না হওয়ায় আক্ষেপ পরিকল্পনামন্ত্রীর
আইসিসির চার্টার্ড বিমানে ফিরছেন নিগার-সালমারা
ওমিক্রনে বাতিল বাছাইপর্ব, বিশ্বকাপে বাংলাদেশ নারী দল

শেয়ার করুন