করোনায় মৃত্যু কমে ১, শনাক্ত ২৭৩

player
করোনায় মৃত্যু কমে ১, শনাক্ত ২৭৩

দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতি এখন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, দেশে এ পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৫ লাখ ৭৬ হাজার ২৮৪ জনের শরীরে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ৯৮১ জনের।

প্রতিনিয়তই দেশে করোনাভাইরাস পরিস্থিতির উন্নতি হচ্ছে। এই ভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে সবশেষ ২৪ ঘণ্টায় একজনের মৃত্যু হয়েছে। আর সংক্রমণ ধরা পড়েছে ২৭৩ জনের শরীরে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে মঙ্গলবার বিকেলে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

দেশে এ পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৫ লাখ ৭৬ হাজার ২৮৪ জনের শরীরে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ৯৮১ জনের।

গত এক দিনে করোনা থেকে সুস্থ হয়েছে ৩৬৮ জন। এখন পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছে ১৫ লাখ ৪০ হাজার ৯৬৫ জন। সুস্থতার হার ৯৭ দশমিক ৭৬ শতাংশ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার নির্দেশনা অনুযায়ী, কোনো দেশে টানা দুই সপ্তাহ নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে থাকলে সে দেশের করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসছে বলে ধরা হয়।

সে অনুযায়ী বাংলাদেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ ইতোমধ্যে নিয়ন্ত্রণে এসেছে। সরকারের লক্ষ্য এই হার শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনা।

আরও পড়ুন:
করোনায় সাত বিভাগে মৃত্যু শূন্য
করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২০৫

শেয়ার করুন

মন্তব্য

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর বিয়ে আটকালো করোনা

নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রীর বিয়ে আটকালো করোনা

জেসিন্ডা আরডার্ন। ছবি: সংগৃহীত

জেসিন্ডা বলেন, ‘আমার বিয়েও হবে না। এ ধরনের অভিজ্ঞতা যাদের হয়েছে, আমিও তাদের দলে যোগ দিলাম। আমি খুবই দুঃখিত।’

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বৃদ্ধির প্রেক্ষাপটে নিজের বিয়ে বাতিলের ঘোষণা দিয়েছেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা আরডার্ন।

স্থানীয় সময় রোববার সাংবাদিকদের আরডার্ন এ কথা জানান বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স

দেশজুড়ে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বিধিনিষেধ আরোপের ঘোষণা দিয়েছে সরকার। এমন অবস্থায় নিজের বিয়ে নিয়ে কথা বলেন নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী।

জেসিন্ডা বলেন, ‘আমার বিয়েও হবে না। এ ধরনের অভিজ্ঞতা যাদের হয়েছে, আমিও তাদের দলে যোগ দিলাম। আমি খুবই দুঃখিত।’

দীর্ঘদিনের সঙ্গী টেলিভিশন উপস্থাপক ক্লার্ক গেফোর্ডের সঙ্গে বিয়ের পিঁড়িতে বসতে যাচ্ছেন জেসিন্ডা আরডার্ন। তবে বিয়ের তারিখ বা এ নিয়ে বিস্তারিত কিছু এখনও জানা যায়নি।

ধারণা করা হচ্ছিল, শিগগিরই আনুষ্ঠানিকতা সারবেন তারা। তবে এর মধ্যেই নতুন বিধিনিষেধে পিছিয়ে গেল জেসিন্ডা-গেফোর্ডের বিয়ে।

সঙ্গীর সঙ্গে বিয়ে বাতিলের ঘোষণায় কেমন অনুভব করছেন, জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা বলেন, ‘জীবন এমনই।’

তিনি বলেন, ‘আমাকে সাহস করে বলতে হচ্ছে, নিউজিল্যান্ডের হাজার হাজার বাসিন্দা যাদের জীবনে মহামারি মারাত্মক প্রভাব ফেলেছে তাদের থেকে আমি আলাদা নই। এই প্রভাবের মধ্যে সবচেয়ে ভয়ংকর হলো, কেউ যখন গুরুতর অসুস্থ হন, তখন প্রিয়জনের সাথে থাকতে পারেন না।’

প্রধানমন্ত্রী জেসিন্ডা বলেন, ‘এর বেদনা আমার অন্য যেকোনো দুঃখজনক ঘটনাকে ছাড়িয়ে যাবে।’

ওমিক্রনের প্রাদুর্ভাবের পর পুরো নিউজিল্যান্ডে সর্বোচ্চ স্তরের বিধিনিষেধ জারি করা হয়েছে সম্প্রতি। এর মধ্যে রয়েছে যেকোনো অনুষ্ঠানে ১০০ জনের বেশি মানুষের উপস্থিতি না থাকা এবং দোকান ও গণপরিবহনে মাস্ক পরা।

২০২০ সালের মার্চ থেকে নিউজিল্যান্ড অন্য দেশের সঙ্গে সীমান্ত বন্ধ রেখেছে। মহামারি শুরুর পর এ পর্যন্ত দেশটিতে ১৫ হাজার ১০৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৫২ জনের।

আরও পড়ুন:
করোনায় সাত বিভাগে মৃত্যু শূন্য
করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২০৫

শেয়ার করুন

জরায়ুমুখ ক্যানসার নির্মূলে করণীয় কী

জরায়ুমুখ ক্যানসার নির্মূলে করণীয় কী

আগামী ১০০ বছরের মধ্যে পৃথিবী থেকে জরায়ুমুখ ক্যানসার, গুটি বসন্ত ও পোলিওর মতো রোগ নির্মূল করা সম্ভব। এ উদ্দেশ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ২০১৯ সালের ১৭ নভেম্বরে ঘোষণা দেয়, জরায়ুমুখ ক্যানসার নির্মূল করতে ২০৩০ সালের মধ্যে কিছু লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হবে।

বিশ্বজুড়ে নানা ধরনের ক্যানসারে আক্রান্ত হন নারীরা। বিভিন্ন দেশে নারীরা সবচেয়ে বেশি যেসব ক্যানসারে আক্রান্ত হন, তার মধ্যে চতুর্থ সর্বোচ্চ স্থানে আছে জরায়ুমুখ ক্যানসার, বাংলাদেশে যেটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

৯৯.৮ শতাংশের ক্ষেত্রে হিউম্যান প্যাপিলমা ভাইরাসের (এইচপিভি) সংক্রমণের ফলে রোগের সূচনা হয়। এ ক্যানসারের একটি পূর্বাবস্থা থাকে, যা ১৫ থেকে ২০ বছর পর্যন্ত স্থায়ী হতে পারে। সাধারণত যৌন সঙ্গমের ফলে ভাইরাসটি দেহে অনুপ্রবেশ করে।

জরায়ুমুখ ক্যানসার ছাড়াও এইচপিভির মাধ্যমে যোনিদ্বার, যোনি, মুখগহ্বর, পিনাইল/পুরুষাঙ্গ ক্যানসার হয়ে থাকে।

আক্রান্তের ঝুঁকি বেশি কাদের

বাল্যবিবাহ, কম বয়সে সন্তান প্রসব, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা কমে যাওয়া, বেশিসংখ্যক সন্তান প্রসব কিংবা যৌন রোগ থাকলে জরায়ুমুখ ক্যানসার হতে পারে। নারী ও পুরুষ উভয়ের ক্ষেত্রে একাধিক যৌনসঙ্গী থাকলে এ রোগ হতে পারে।

এর বাইরে আর্থ-সামাজিক অবস্থা কিংবা স্বাস্থ্য সচেতনতার অভাবে রোগটি হতে পারে।

জরায়ুমুখ ক্যানসার নির্মূলে বৈশ্বিক তৎপরতা

আগামী ১০০ বছরের মধ্যে পৃথিবী থেকে জরায়ুমুখ ক্যানসার, গুটি বসন্ত ও পোলিওর মতো রোগ নির্মূল করা সম্ভব। এ উদ্দেশ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) ২০১৯ সালের ১৭ নভেম্বরে ঘোষণা দেয়, জরায়ুমুখ ক্যানসার নির্মূল করতে ২০৩০ সালের মধ্যে কিছু লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে হবে।

সংস্থাটি জানায়, ৯০ শতাংশ কিশোরীকে এইচপিভি টিকা দিতে হবে। এ ছাড়া ২৫ থকে ৬০ বছর বয়সী নারীদের মধ্যে ৭০ শতাংশকে স্ক্রিনিং বা পরীক্ষার আওতায় আনতে হবে। এর বাইরে ক্যানসারপূর্ব অবস্থা বা জরায়ুমুখ ক্যানসার থাকা ৯০ শতাংশ নারীকে ২০৩০ সালের মধ্যে চিকিৎসা দেয়ার পাশাপাশি পেলিয়েটিভ কেয়ারের আওতায় আনতে হবে। এ ব্যবস্থাকে ডব্লিউএইচওর ৯০-৭০-৯০ ম্যানডেট বলা হচ্ছে।

ডব্লিউএইচওর মহাপরিচালক ডা. টেডরোস আধানম গেব্রিয়েসুস ২০১৮ সালের ‍মে মাসে জরায়ুমুখ ক্যানসার নির্মূলে বৈশ্বিক তৎপরতার ডাক দেন। পরবর্তী সময়ে ২০২০ সালের আগস্টে এ ক্যানসার নির্মূলে বৈশ্বিক কর্মকৌশল গ্রহণ করে ডব্লিউএইচও। একই বছরের ১৭ নভেম্বর সে কর্মকৌশলের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হয়। বাংলাদেশসহ ১৯৪টি দেশ এ কর্মকৌশলে নিজেদের সম্পৃক্ত করে।

বাংলাদেশের অবস্থান কোথায়

জাতিসংঘের ২০২০ সালের ডেটা অনুযায়ী, আমাদের জনসংখ্যা ১৭ কোটি। উন্নয়নশীল দেশ থেকে আমরা বর্তমানে মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হওয়ার পথে। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের (আইএমএফ) ২০২০ সালের ডেটা অনুযায়ী, আমাদের মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৬৪ ডলার। এখনও দারিদ্র্যসীমার নিচে ২১.৮ শতাংশ মানুষ।

পৃথিবীর অন্য উন্নয়নশীল দেশগুলোর মতো বাংলাদেশেও জরায়ুমুখ ক্যানসারের প্রকট অনেক বেশি। গ্লোবকনের ২০২০ সালের ডেটা অনুযায়ী, প্রতি বছর প্রায় ৮ হাজার ২৬৮ জন নারীর জরায়ুমুখ ক্যানসার শনাক্ত হয়। এ ক্যানসারে বার্ষিক মৃত্যু হয় ৪ হাজার ৯৭১ নারীর।

যেহেতু এখন পর্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ বিষয়গুলো বেড়ে চলেছে এবং অপর্যাপ্ত পরীক্ষা হয়েছে, সেহেতু বাংলাদেশে স্তন ক্যানসারের পরই জরায়ুমুখ ক্যানসারে বেশি আক্রান্ত হচ্ছে নারীরা।

২০০৫ সাল থেকে এখন পর্যন্ত ১৪.৩ শতাংশ নারীর ভিজ্যুয়াল ইন্সপেকশন উইথ অ্যাসেটিক অ্যাসিড তথা ভিআইএ পদ্ধতির মাধ্যমে জরায়ুমুখ ক্যানসার পরীক্ষা করা হয়েছে।

২০১০ সালে বাংলাদেশে হাজারে মাতৃমৃত্যু ছিল ৩১০। ২০১৫ সালে সেটি কমে দেড়শতে নেমে আসে। সেদিক থেকে দেখলে জরায়ুমুখ ও অন্যান্য ক্যানসারজনিত রোগে মৃত্যুহার বেড়েছে।

আমাদের করণীয় কী

জরায়ুমুখ ক্যানসার নির্মূল ও আক্রান্তদের রক্ষায় আমাদের বেশ কিছু করণীয় আছে। সেগুলো এখন তুলে ধরছি।

১. আমাদের মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত এইচপিভি টিকাদান। এ নিয়ে ২০০৮ সালে বাংলাদেশ সার্ভিক্যাল ক্যানসার ভ্যাকসিনেশন (জরায়ুমুখ ক্যানসার টিকাদান) কমিটি একটি পাইলট কর্মসূচি চালু করে। সে কর্মসূচির আওতায় ছিল ৬৭ জন মেয়ে, যাদের বয়স ৯ থেকে ১৫ বছর। তাদের মধ্যে ৫০ জনকে টিকা দেয়া হয়। ১৭ জন কন্ট্রোল হিসেবে থাকে। ৯৭.৫ শতাংশ মেয়ের সেরো কনভারশন হয়। ৭ বছর পর তাদের ৯৩.৩ শতাংশের দেহে অ্যান্টি এইচপিভি ১৬/১৮ অ্যান্টিবডি তৈরি হয়।

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অধীনে গাজীপুরে আরেকটি পাইলট কর্মসূচি নেয়া হয়। ৬ মাসের ব্যবধানে দুটি টিকা দেয়া হয় ১০ বছর বয়সের মেয়েদের। সে কর্মসূচির প্রথম বছরে ৮৯ শতাংশ এবং দ্বিতীয় বছরে ৯৮ শতাংশ মেয়েদের টিকা দেয়া হয়।

টিকাদানের ক্ষেত্রে কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে।

(ক) ২০২২ সালের মধ্যে এইচপিভি টিকা সম্প্রসারিত টিকাদান কর্মসূচির (ইপিআই) আওতাভুক্ত করতে হবে।

(খ) বর্তমানে ৯০ শতাংশ টিকাদান কর্মসূচি হয় স্কুলভিত্তিক। স্কুলের বাইরে মেয়ের টিকা দিতে হবে। ছেলেদেরও টিকা দিতে হবে।

(গ) কিছু বিষয়ে সচেতনতা বাড়াতে হবে। যেমন: বাল্যবিয়ে না করা, একাধিক যৌনসঙ্গী না রাখা, অল্প বয়সে সন্তান ধারণ না করা, অল্প সময়ের ব্যবধানে বারবার সন্তান প্রসব না করা, ধূমপান না করা, জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি ৫ বছরের বেশি সময় গ্রহণ না করা, যৌনস্বাস্থ্য ও পরিচ্ছন্নতা রক্ষা করা।

১০ থেকে ১৫ বছর বয়সীদের মধ্যে টার্গেট গ্রুপ হলো ৮ লাখ ৩১ হাজার।

২. জরায়ুমুখ ক্যানসার মোকাবিলায় দ্বিতীয় লক্ষ্য হবে ৭০ শতাংশ নারীকে স্ক্রিনিং বা পরীক্ষার আওতায় আনা। উন্নত দেশে পাপ্স স্মেয়ার প্রচলিত আছে। যথেষ্ট ল্যাবরেটরি ও প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত জনবল না থাকায় বাংলাদেশে ভিআইএ বা ভায়া স্ক্রিনিং পদ্ধতির মাধ্যমে জাতীয় পর্যায়ে স্ক্রিনিং শুরু করা হয়।

এ নিয়ে ২০০৫ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমউ) পাইলট প্রকল্প শুরু হয়। ২০১২ থেকে ২০১৮ সাল নাগাদ ন্যাশনাল সেন্টার ফর ভায়া অ্যান্ড সিবিই সক্রিয় কার্যক্রম চালায়। ২০১৮-২১ মেয়াদে ‘ইলেকট্রনিক ডেটা ট্র্যাকিং উইথ পপুলেশন বেইজড সার্ভিক্যাল অ্যান্ড ব্রেস্ট ক্যানসার স্ক্রিনিং প্রোগ্রাম’ নামের কর্মসূচি পরিচালনা করা হয়।

বর্তমানে দেশে ভিআইএ কেন্দ্র আছে ৫০০টি। এ মুহূর্তে ভিআইএ সম্পৃক্তদের মধ্যে ২ হাজার ৩৮৬ জন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত। তাদের মধ্যে ৪০০ চিকিৎসক, ১ হাজার ৯৫৬ নার্স, এফডব্লিউভি ও প্যারামেডিকস রয়েছেন।

দেশে ৭ কোটি ৫ লাখ নারীর মধ্যে টার্গেট গ্রুপ হলো ৩ কোটি। ২০১৯ সাল পর্যন্ত ভিআইএ পদ্ধতির মাধ্যমে ১০ শতাংশ এবং ২০২১ সালে ১৪.৩ শতাংশের পরীক্ষা হয়েছে। এ সময়ে পরীক্ষা করা হয়েছে ২৪ লাখ ৪৭১ জনকে। তাদের মধ্যে ৪ দশমিক ৫ শতাংশ বা ১ লাখ ৮ হাজার ৩২৬ জনের ফল পজিটিভ এসেছে।

স্ক্রিনিংয়ের ক্ষেত্রে বেশ কিছু করণীয় রয়েছে। সেগুলো নিচে উল্লেখ করছি।

(ক) দেশের পরিসংখ্যান থেকে স্পষ্ট, ৮৬ শতাংশ নারীর স্ক্রিনিং হয়নি। এ কারণে পদ্ধতিগত পরিবর্তন আনতে হবে। অর্থাৎ ভিআইএর সঙ্গে প্রাথমিক স্ক্রিনিং টেস্ট হিসেবে এইচপিভি ডিএনএ টেস্টের প্রবর্তন করতে হবে।

(খ) পলিসি প্রবর্তন গাইডলাইন তৈরি করতে হবে।

(গ) ন্যাশনাল স্ক্রিনিং প্রোগ্রাম বা জাতীয় পরীক্ষা কর্মসূচির আওতায় ৩০ থেকে ৬০ বছর বয়সী নারীদের টার্গেট গ্রুপ হিসেবে নিতে হবে।

(ঘ) ডব্লিউএইচওর মতে, একজন নারীর জীবনে দুবার পরীক্ষা করালে আর জরায়ুমুখ ক্যানসারের প্রয়োজন হয় না। দুবার পরীক্ষার মধ্যে কমপক্ষে ৫ বছর বিরতি দিতে হবে। সে বিষয়টি মাথায় রেখে কর্মসূচি সাজাতে হবে।

(ঙ) হাসপাতালভিত্তিক পরীক্ষার পরিবর্তে জনসংখ্যাভিত্তিক পরীক্ষা হতে হবে। এ ক্ষেত্রে টার্গেট জনসংখ্যা হবে ৩ কোটি।

এ ক্ষেত্রে কিছু বিষয়ের কথা উল্লেখ করা যায়। যেমন: ‘সি অ্যান্ড ট্রিট’ নামে কুড়িগ্রামে একটি পাইলট প্রকল্প চালু করা হয়। ২০১৯ সালের প্রথম সপ্তাহে চালু হওয়া এ প্রকল্পের মেয়াদ ২০২৩ সাল পর্যন্ত।

এ প্রকল্পের আওতায় ভিআইএ-মিনি কলপোস্কোপি-থার্মোকোয়াগুলেশন পদ্ধতিতে টার্গেট জনসংখ্যা ধরা হয় ৬০ হাজার। এর মধ্যে কাভারেজে এসেছে ৩০ হাজার ৭৫২ বা ৫০ শতাংশ।

কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমেও জরায়ুমুখ ক্যানসার পরীক্ষার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। প্রতি কমিউনিটি ক্লিনিকে ৬০০ থেকে ৭০০ নারীকে পরীক্ষা করা হবে। মোট ১৩ হাজার কমিউনিটি ক্লিনিকে ৯১ লাখ নারীর স্ক্রিনিং সম্ভব হবে।

৩. জরায়ুমুখ ক্যানসার নির্মূল পরীক্ষার লক্ষ্য নিশ্চিতের পাশাপাশি আরেকটি দিক মাথায় রাখতে হবে। সেটি হলো পরীক্ষার বিষয়টি বাস্তবায়ন কারা করবে। এ ক্ষেত্রে কিছু বিষয় নজরে আনতে হবে।

(ক) বিভাগীয় পর্যায়ে ৮টি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, ক্যানসার সেন্টার এবং অন্যান্য সেন্টারে জরায়ুমুখ ক্যানসার পরীক্ষা করাতে হবে। ২৫ থেকে ৬০ বছর বয়সী নারীদের এর আওতায় আনতে হবে।

(খ) চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীদের প্রশিক্ষণ দিতে হবে। এইচপিভি জিনোটাইপের জন্য পিসিআর ল্যাব প্রস্তুত করতে হবে।

(গ) সরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও ৮টি বিভাগীয় ক্যানসার সেন্টারে পিসিআর ল্যাব তৈরি করতে হবে।

(ঘ) লক্ষ্য অর্জনে বর্তমানে উন্নয়নশীল ১০টি দেশ প্রাইমারি স্ক্রিনিং হিসেবে ভিআইএর পরিবর্তে এইচপিভি ডিএনএ পদ্ধতিতে পরীক্ষা করছে। করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে ঢাকায় ৬৮টি পিসিআর ল্যাব, অন্যান্য শহরে ৫০টি পিসিআর ল্যাবসহ ১১০টি ল্যাবকে এইচপিভি জিনোটাইপিংয়ের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। বর্তমানে বিএসএমএমইউ, জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল এবং ওজিএসবি হাসপাতালে এ ধরনের ল্যাব আছে।

(ঙ) নারীরা যেন নিজেরাই সোয়াবের মাধ্যমে স্যাম্পল নিতে পারেন, সে জন্য ভিডিও প্রদর্শনীর আয়োজন করতে হবে।

(চ) শিক্ষার্থী, সমাজকর্মী, ক্যানসার সারভাইভার, সেবাদানকারী মিলে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

৪. জরায়ুমুখ ক্যানসার নির্মূলে তৃতীয় লক্ষ্য হলো ক্যানসারপূর্ব অবস্থায় থাকা এবং শনাক্ত হওয়া ৯০ শতাংশ নারীকে চিকিৎসা দেয়া।

বিএসএমএমইউয়ের গাইনোকোলজিক্যাল অনকোলজি বিভাগ, এনআইসিআরএইচ, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে বর্তমানে এ চিকিৎসার ব্যবস্থা আছে।

প্রতিটি জরায়ুমুখ ক্যানসারজনিত মৃত্যু অত্যন্ত দুঃখজনক। কারণ এই ক্যানসার প্রতিরোধ করা সম্ভব। বর্তমানে বছরে ৪ লাখ নারীর স্ক্রিনিং হচ্ছে। কাজেই ৭০ শতাংশ নারীকে স্ক্রিনিংয়ের আওতায় আনা খুব কঠিন হবে।

২০৩০ সালের মধ্যে লক্ষ্য অর্জন করতে হলে আমাদের আরও পর্যালোচনা দরকার।

পরীক্ষায় পজিটিভ হওয়া নারীদের দুইভাবে চিকিৎসা দেয়া যেতে পারে। ডব্লিউএইচওর মতে, আলাদাভাবে ট্রেয়াজের মাধ্যমে একত্রিত করা। এ ক্ষেত্রে ভিআইএর আওতাধীন কলপোস্কপি/সিটোলোজি কিংবা ট্রিটিং স্ক্রিন অ্যান্ড ট্রিট তথা একই সময়ে শনাক্তকরণ ও চিকিৎসা প্রদান করা যেতে পারে।

চিকিৎসার ক্ষেত্রে কিছু বিষয় মাথায় রাখতে হবে।

(ক) প্রতিটি সরকারি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও জেলা হাসপাতালে কলপোস্কপি ক্লিনিক তৈরি

(খ) বিভাগীয় ৮টি মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল, ক্যানসার সেন্টারে

চিকিৎসকদের কলপোস্কপি, ক্রিয়োথেরাপি, থার্মাল অ্যাবলেশন, লিপ প্রসিডিউর বিষয়ে প্রশিক্ষণ।

(গ) ক্যানসারের সার্জারির জন্য আরও উচ্চতর প্রশিক্ষণদান।

(ঘ) এনজিও, সরকারি, বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের ডেটাবেজ তৈরি।

(ঙ) ক্যানসার রেজিস্ট্রি, মৃত্যুহার রেজিস্ট্রির মধ্যে সংযোগ স্থাপন।

(চ) রেডিও থেরাপি ও কেমোথেরাপির প্রসার।

(ছ) পেলিয়েটিভ সেবার প্রসার।

(জ) স্বাস্থ্যবিমার প্রবর্তন।

আসুন আমরা সবাই মিলে সচেতন হই ও সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলি। প্রত্যেকে নিজ নিজ স্থানে থেকে জরায়ুমুখ ক্যানসারমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে পৃথিবীর বুকে নতুন ইতিহাস রচনা করি।

লেখক: অধ্যাপক ও ইউনিট প্রধান, গাইনোকোলজিক্যাল অনকোলজি বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়

আরও পড়ুন:
করোনায় সাত বিভাগে মৃত্যু শূন্য
করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২০৫

শেয়ার করুন

চাকরির পরীক্ষায় বসতে লাগবে টিকা সনদ

চাকরির পরীক্ষায় বসতে লাগবে টিকা সনদ

টিকা সনদ। ফাইল ছবি

পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক নুর আহমদ বলেন, ‘সবার স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্যই চাকরিপ্রার্থীদের পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সময় টিকা সনদ সঙ্গে রাখতে বলা হয়েছে।’

বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের (পিএসসি) অধীন সব পরীক্ষায় অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে চাকরিপ্রার্থীদের করোনাভাইরাস প্রতিরোধী টিকা নেয়ার সনদ সঙ্গে রাখতে হবে।

পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ক্যাডার) নুর আহমদের সই করা অফিস আদেশ থেকে রোববার এ তথ্য জানা যায়।

এ বিষয়ে নুর আহমেদ বলেন, ‘সবার স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্যই চাকরিপ্রার্থীদের পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সময় টিকা সনদ সঙ্গে রাখতে বলা হয়েছে।’

অফিস আদেশে বলা হয়, ‘বাংলাদেশ সরকারি কর্ম কমিশনের বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী যেকোনো পদের প্রিলিমিনারি টেস্ট, লিখিত পরীক্ষা এবং মৌখিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণের ক্ষেত্রে পরীক্ষার্থীদের কোভিড-১৯ টিকা গ্রহণ নিশ্চিত করার পরামর্শ প্রদান করা হলো। টিকা গ্রহণ করে এ-সংক্রান্ত প্রমাণপত্র বা সনদপত্র সংগ্রহ করে পরীক্ষার সময় সঙ্গে রাখতে হবে।’

এতে আরও বলা হয়, ‘পরীক্ষার্থী, পরীক্ষক এবং পরীক্ষার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সবার স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য টিকা গ্রহণের বিষয়টি নিশ্চিত করার জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে অনুরোধ করা হলো।’

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার প্রেক্ষাপটে সম্প্রতি বেশ কিছু বিধিনিষেধ দিয়েছে সরকার। এরই ধারাবাহিকতায় পিএসসিও পদক্ষেপ গ্রহণ করল।

আরও পড়ুন:
করোনায় সাত বিভাগে মৃত্যু শূন্য
করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২০৫

শেয়ার করুন

করোনা সংক্রমণ এখন শাটডাউনকালের সমান

করোনা সংক্রমণ এখন শাটডাউনকালের সমান

হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে রোগী নিয়ে এসেছেন স্বজনরা। ছবি: সাইফুল ইসলাম

গত ৭ জানুয়ারি পরীক্ষার বিপরীতে করোনার সংক্রমণ ৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যাওয়ার পর এ নিয়ে ১৭ দিনে সংক্রমণের হার বেড়ে ৬ গুণ হয়ে গেল। টানা দুই সপ্তাহ সংক্রমণের হার ৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যাওয়ার পর করোনার তৃতীয় ঢেউ নিশ্চিত হয়ে যায়।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে যখন দেশে শাটডাউন নামে বিধিনিষেধ দেয়া হয়, সে সময় পরীক্ষার বিপরীতে যে সংক্রমণের হার ছিল, বর্তমান অবস্থা ঠিক সে সময়ের মতো।

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে যতগুলো নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে, তার মধ্যে প্রতি ৩১ দশমিক ২৯ শতাংশের মধ্যে করোনাভাইরাসের উপস্থিতির প্রমাণ পাওয়া গেছে। এই হার গত ছয় মাসের মধ্যে সর্বোচ্চ।

শাটডাউন চলাকালে গত বছরের ২৪ জুলাই এর চেয়ে বেশি সংক্রমণে হার পাওয়া গেছে। সেদিন ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষার বিপরীতে সংক্রমণ ছিল ৩২ দশমিক ৫৫ শতাংশ।

গত শনিবার সকাল থেকে রোববার সকাল পর্যন্ত সারা দেশে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে ৩৪ হাজার ৪৫৪ জনের। এদের মধ্যে রোগী পাওয়া গেছে ১০ হাজার ৯০৬ জন।

রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

আগের ২৪ ঘণ্টায় নতুন রোগী পাওয়া যায় ৯ হাজার ৬১৪ জন।

এ নিয়ে ভাইরাসটিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হিসাবে শনাক্ত হয়েছেন ১৬ লাখ ৮৫ হাজার ১৩৬ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৫ লাখ ৫৬ হাজার ৮৬১ জন।

শনিবারের তুলনায় রোগী বেশি পাওয়া গেলেও সংখ্যাটি শুক্রবারের তুলনায় কম। সেদিন ২৪ ঘণ্টায় রোগী ছিল ১১ হাজার ৪৩৪ জন।

তবে বরাবর শনিবার তুলনামূলক কম রোগী পাওয়া যায়। এর কারণ, শুক্রবার সাধারণত নমুনা পরীক্ষা কম হয়।

গত ৭ জানুয়ারি পরীক্ষার বিপরীতে করোনার সংক্রমণ ৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যাওয়ার পর এ নিয়ে ১৭ দিনে সংক্রমণের হার বেড়ে ৬ গুণ হয়ে গেল। টানা দুই সপ্তাহ সংক্রমণের হার ৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যাওয়ার পর করোনার তৃতীয় ঢেউ নিশ্চিত হয়ে যায়।

তবে প্রথম ও দ্বিতীয় ঢেউয়ের তুলনায় এবার মৃত্যুর হার তুলনামূলক কম। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ১৪ জনের মৃত্যুর কথা জানানো হয়েছে, যা আগের ২৪ ঘণ্টায় ছিল ১৭ জন।

এ নিয়ে দেশে এখন পর্যন্ত ভাইরাসটিতে মারা গেছে ২৮ হাজার ২২৩ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় যারা মারা গেছেন, তাদের ৬ জন পুরুষ, নারী ৮ জন। মৃত্যু সবচেয় বেশি ঢাকা বিভাগে, ৫ জন। এ ছাড়া চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগে দুইজন করে এবং খুলনা, বরিশাল ও রংপুর বিভাগে একজন করে মারা গেছেন।

আক্রান্তও সবচেয়ে বেশি ঢাকা বিভাগে। গত ২৪ ঘণ্টায় এই বিভাগে রোগী পাওয়া গেছে ৬ হাজার ৫৮১ জন।

তৃতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার পর সারা দেশে জারি করা হয়েছে নানা বিধিনিষেধ। এর মধ্যে আছে সামাজিক ও রাজনৈতিক জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা, সামাজিক অনুষ্ঠানে ১০০ জনের বেশি হাজির না হওয়া প্রভৃতি। সশরীরে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানও।

গণপরিবহনে অর্ধেক যাত্রী বহনের নিষেধাজ্ঞা নিয়েও তা প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে, যদিও ট্রেনে প্রতি দুই আসনে একজন যাত্রী তোলা হচ্ছে।

এবার এখন পর্যন্ত লকডাউনের মতো কঠোর না হওয়ার সিদ্ধান্তের কথাও জানানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
করোনায় সাত বিভাগে মৃত্যু শূন্য
করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২০৫

শেয়ার করুন

ওমিক্রনের সামাজিক সংক্রমণ চলছে: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

ওমিক্রনের সামাজিক সংক্রমণ চলছে: স্বাস্থ্য অধিদপ্তর

ওমিক্রন আস্তে আস্তে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের জায়গা দখল করে নিচ্ছে। ফাইল ছবি

ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের বিষয়ে সবাইকে সতর্ক করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র ডা. নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের সামাজিক সংক্রমণ ঘটেছে। আস্তে আস্তে ডেল্টার জায়গাগুলোকে দখল করে ফেলছে ওমিক্রন।’

করোনারভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনের সামাজিক সংক্রমণ চলছে উল্লেখ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে ওমিক্রন আস্তে আস্তে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের জায়গা দখল করে নিচ্ছে।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আয়োজিত রোববার দুপুরে ভার্চুয়াল বুলেটিনে অধিদপ্তরের মুখপাত্র ডা. নাজমুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের বিষয়ে সবাইকে সতর্ক করে নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনের সামাজিক সংক্রমণ ঘটেছে। আস্তে আস্তে ডেল্টার জায়গাগুলোকে দখল করে ফেলছে ওমিক্রন।’

যদিও শুক্রবার বিশেষ সংবাদ সম্মেলনে এসে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, দেশে করোনা আক্রান্তদের ৭০ শতাংশই ওমিক্রনে আক্রান্ত। এমন পরিস্থিতি গোটা দেশে। এর দুই দিন পর, এমন তথ্য জানাল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘৭৩ শতাংশ মানুষের নাক দিয়ে পানি ঝরছে। ৬৮ শতাংশ মানুষের মাথা ব্যথা করছে। ৬৪ শতাংশ রোগী অবসন্ন-ক্লান্তি অনুভব করছেন। ৭ শতাংশ রোগী হাঁচি দিচ্ছেন। গলা ব্যথা হচ্ছে ৭ শতাংশ রোগীর। ৪০ শতাংশ রোগীর কাশি হচ্ছে। এই বিষয়গুলো আমাদের মাথায় রাখতে হবে। এখন সিজনাল যে ফ্লু হচ্ছে তার সঙ্গে কিন্তু ওমিক্রনের মিল রয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ডিসেম্বরের শেষ থেকে বাংলাদেশে করোনা সংক্রমণ বাড়তে শুরু করে। ২২ জানুয়ারি এসে শনাক্তের হার ২৮ শতাংশের বেশি রয়েছে। সপ্তাহের শুরু ১৬ জানুয়ারি যেটা ছিল ১৭ দশমিক ৮২ শতাংশ। গত বছরের শেষ দিক থেকে এ বছরের শুরু পর্যন্ত রোগীর সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসা নেয়ার জন্য আগ্রহী রোগীর সংখ্যা বাড়ছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ১০০টি নমুনা সংগ্রহের বিপরীতে শনাক্তের হার ২৮ শতাংশের বেশি। আজ পর্যন্ত যে গড় আছে তা ১৩ দশমিক ৮৬ শতাংশ।

আরও পড়ুন:
করোনায় সাত বিভাগে মৃত্যু শূন্য
করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২০৫

শেয়ার করুন

করোনার বাড়বাড়ন্তে সচিবালয়ে প্রবেশে মানা

করোনার বাড়বাড়ন্তে সচিবালয়ে প্রবেশে মানা

সচিবালয়। ফাইল ছবি

সোমবার থেকে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ছাড়া অন্য কেউ রাষ্ট্রীয় প্রশাসন পরিচালনার কেন্দ্রে ঢুকতে পারবেন না। আপাতত কোনো দর্শনার্থী পাস ইস্যু করা হবে না।

দেশে করোনাভাইরাসের তৃতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার পর নানা বিধিনিষেধের মধ্যে এবার সচিবালয়ে দর্শনার্থী প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।

সোমবার থেকে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ছাড়া অন্য কেউ রাষ্ট্রীয় প্রশাসন পরিচালনার কেন্দ্রে ঢুকতে পারবেন না। আপাতত কোনো দর্শনার্থী পাস ইস্যু করা হবে না।

রোববার তথ্য অধিদপ্তরের এক বিবরণীতে এ কথা জানানো হয়। এতে বলা হয়েছে, ‘২৪ জানুয়ারি থেকে পুনরাদেশ না দেয়া পর্যন্ত সচিবালয়ে দর্শনার্থী প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছে।’

টানা ১৫ দিন পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৫ শতাংশ ছাড়িয়ে যাওয়ায় দেশে করোনার তৃতীয় ঢেউ ছড়িয়ে পড়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায় ২১ জানুয়ারি।

এর আগে ২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে করোনা সংক্রমণ শুরুর পর ২০২১ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি তা নিয়ন্ত্রণে আসে। মার্চের শেষে আবার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানে। সেটি নিয়ন্ত্রণে আসে গত ৪ অক্টোবর।

সংক্রমণ পরিস্থিতি ওঠানামার মধ্যেই চলতি মাসে প্রভাব ফেলতে শুরু করে ভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন। এমন প্রেক্ষাপটে বেশ কিছু বিধিনিষেধ দেয় সরকার। তবে কার্যত করোনার বিধি উপেক্ষিতই রয়ে গেছে।

সর্বশেষ শুক্রবার স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, ‘আমরা স্বাস্থ্যবিধি মানছি না। যে কারণে করোনা বাড়ছে। করোনা নিয়ন্ত্রণে ১১ দফা স্বাস্থ্যবিধি দেয়া হয়েছে। সে বিধিনিষেধ যদি যথাযথ বাস্তবায়ন হয়, তাহলে কারোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হতো।’

১১ দফা বিধিনিষেধ সবাইকে মেনে চলার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এগুলো কার্যকরের চেষ্টা চলছে। সংক্রমণ যাতে কমে সে জন্য এই সিদ্ধান্ত। পরিবার, দেশে ও নিজের সুরক্ষার জন্য আমাদের নিয়মগুলো মানতে হবে। সরকার বিধিনিষেধ দেন, যাতে আমরা মেনে চলি।’

মন্ত্রী বলেন, ‘যেখানে খেলাধুলা আছে, সেখানে টিকা সনদের পাশাপাশি টেস্টের সনদও লাগবে। এগুলো বইমেলায়ও দেখাতে হবে। সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতিতে বইমেলা পেছানো হয়েছে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের মতোই আমরাও চলমান পরিস্থিতির বাইরে নই।’

নির্দেশনা বাস্তবায়নের দায়িত্ব প্রশাসনের জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা চাইব, তারা যেন আরও নজরদারি বাড়ান। জনগণের দায়িত্ব আরও বেশি। নিজেদের সুরক্ষায় এটি নিজেদেরই পালন করতে হবে। সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়।’

আরও পড়ুন:
করোনায় সাত বিভাগে মৃত্যু শূন্য
করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২০৫

শেয়ার করুন

হাসপাতালে করোনা রোগীর চাপ বেড়েছে

হাসপাতালে করোনা রোগীর চাপ বেড়েছে

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, গত তিন-চার মাসের তুলনায় কয়েক দিনে অনেক বেশি রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। ফাইল ছবি

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক নাজমুল ইসলাম বলেন, ‘গত বছরের শেষ দিক থেকে শুরু করে নতুন বছরের শুরুর দিকে হাসপাতালে রোগী ভর্তির সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। এভাবে রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকলে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার ওপর চাপ বাড়বে।’

করোনা রোগী শনাক্তের সংখ্যা বেড়ে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে হাসপাতালে রোগী ভর্তি বাড়ছে। গত তিন-চার মাসের তুলনায় কয়েক দিনে অনেক বেশি রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

নিয়মিত স্বাস্থ্য বুলেটিনে রোববার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র অধ্যাপক নাজমুল ইসলাম এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘গত বছরের শেষ দিক থেকে শুরু করে নতুন বছরের শুরুর দিকে হাসপাতালে রোগী ভর্তির সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। এভাবে রোগীর সংখ্যা বাড়তে থাকলে স্বাস্থ্য ব্যবস্থার ওপর চাপ বাড়বে।’

নাজমুল ইসলাম বলেন, করোনা রোগীর চিকিৎসায় রাজধানী ঢাকায় সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে ৪ হাজার ৭৩৬টি শয্যা রয়েছে। যার মধ্যে ৩ হাজার ৪৫৫টি বর্তমানে খালি রয়েছে। করোনা চিকিৎসার জন্য নির্ধারিত ৭৭৮টি আইসিইউর মধ্যে খালি আছে ৬৩৯টি। তবে রোগী হাসপাতালে ভর্তির হার অব্যাহত রয়েছে।

টিকাদান কর্মসূচি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ৯ কোটি ২৪ লাখ ২৬ হাজার ২০০ জনকে করোনা টিকার প্রথম ডোজ দেয়া হয়েছে। দ্বিতীয় ডোজ দেয়া হয়েছে ৫ কোটি ৮০ লাখের বেশি মানুষকে। একই সঙ্গে শিক্ষার্থীদের টিকাদান যথাযথভাবে চলছে। ১ কোটি ২৮ লাখের বেশি শিক্ষার্থী টিকার প্রথম ডোজ পেয়েছে। একই সঙ্গে টিকাদানের বিশেষ কর্মসূচি কমিউনিটি ক্লিনিকের মাধ্যমে ১ কোটি ৮৯ লাখ প্রথম ডোজ টিকা নিয়েছে। দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছে ৯৬ লাখের বেশি মানুষ।

বইমেলা শুরুর আগে সংশ্লিষ্টদের টিকা নেয়ার অনুরোধ

করোনা সংক্রমণ বাড়লেও আগামী মাসে শুরু হচ্ছে অমর একুশে বইমেলা। সংক্রমণের কারণে এবার ১৫ দিন পিছিয়ে দেয়া হয়েছে বইমেলা।

বইমেলায় যারা প্রবেশ করবেন তাদের টিকার সনদ লাগবে জানিয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মুখপাত্র নাজমুল ইসলাম বলেন, বইমেলার সঙ্গে যারা সংশ্লিষ্ট রয়েছেন, তাদের অনুরোধ করব বইমেলা শুরু হওয়ার আগে টিকা নিয়ে নিতে।

বইমেলাসংশ্লিষ্ট সবাইকে সঙ্গে টিকার সনদ রাখতে হবে। যারা ৬০ বছরে বেশি বয়সী। তারা টিকার বুস্টার ডোজ নেবেন। এবং অবশ্যই স্বাস্থ্যবিধি মেনে সঠিক নিয়মে মাস্ক পরে যাবেন। কোনো অবস্থায় মাস্ক খুলে বইমেলায় প্রবেশ করা যাবে না। এই স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে সবার অংশগ্রহণ থাকতে হবে।

করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিকল্প নেই জানিয়ে এই বিশেষজ্ঞ বলেন, ‘স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলায় দেশে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ছিল। স্বাস্থ্যবিধি পালনে উদাসীনতার কারণে আবারও করোনা বাড়ছে। তাই আমাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। টিকা এসএমএস আসার সঙ্গে সঙ্গে টিকা নিয়ে নিতে হবে। যারা এখনও টিকার জন্য নিবন্ধন করেননি, তাদের শিগগিরই টিকার নিবন্ধন সেরে ফেলতে হবে।’

আরও পড়ুন:
করোনায় সাত বিভাগে মৃত্যু শূন্য
করোনায় আরও ৩ মৃত্যু, শনাক্ত ২০৫

শেয়ার করুন