× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট

বাংলাদেশ
Candidates fearful of occupying the center of tension at the last moment
hear-news
player
print-icon

শেষ মুহূর্তে উত্তেজনা, কেন্দ্র দখলের শঙ্কা প্রার্থীদের

শেষ-মুহূর্তে-উত্তেজনা-কেন্দ্র-দখলের-শঙ্কা-প্রার্থীদের সুনামগঞ্জে কেন্দ্রে পৌঁছেছে ভোটের সামগ্রী। ছবিটি শনিবার দুপুরের। ছবি: নিউজবাংলা
সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায় জানান, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ৯ ইউনিয়নের ১৯ কেন্দ্র দখল হওয়ার শঙ্কায় প্রার্থীরা শুক্রবার পর্যন্ত লিখিত আবেদন দিয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বীরা একে অপরের বাড়ির কাছের কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ বা দখল হওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করেন।

প্রচারণার শেষ মুহূর্তে মিছিল-শোডাউন ও পোস্টার ছেঁড়ার ঘটনায় সুনামগঞ্জ সদরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ঘিরে উত্তেজনা দেখা দিয়েছে।

কেন্দ্র দখলের শঙ্কায় আছেন কয়েকজন প্রার্থী। সদরের ৯ ইউনিয়নের ১৯টি কেন্দ্রের ঝুঁকির বিষয়ে নির্বাচন অফিসকে জানিয়েছেন তারা।

সুনামগঞ্জ সদর ও শান্তিগঞ্জ উপজেলার ১৭ ইউনিয়নে ভোট রোববার। শুক্রবার মধ্যরাত থেকে ওইসব নির্বাচনি এলাকায় সব ধরনের প্রচার-প্রচারণা বন্ধ হয়েছে।

সদর উপজেলার ৯ ইউনিয়নের কয়েকজন প্রার্থী কেন্দ্র দখল ও সংঘাতের আশঙ্কায় লিখিত আবেদন দিয়েছেন।

সুনামগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা উত্তম কুমার রায় জানান, সুনামগঞ্জ সদর উপজেলার ৯ ইউনিয়নের ১৯ কেন্দ্র দখল হওয়ার শঙ্কায় প্রার্থীরা শুক্রবার পর্যন্ত লিখিত আবেদন দিয়েছেন। প্রতিদ্বন্দ্বীরা একে অপরের বাড়ির কাছের কেন্দ্রকে ঝুঁকিপূর্ণ বা দখল হওয়ার শঙ্কা প্রকাশ করেন।

ঝুঁকি যাচাই-বাছাই করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান নির্বাচন কর্মকর্তা উত্তম কুমার।

অন্যদিকে নির্বাচনের প্রচারণার শেষ দিনেও পরস্পরের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করেন প্রার্থীরা৷

সদর উপজেলার গৌরারং ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী ছালমা আক্তার চৌধুরী বলেন, ‘শুক্রবার সকালে বিএনপি নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী ফুল মিয়া তার কর্মীদের দিয়ে আমার পোস্টার ছিড়াইছে আর সমর্থকদের মারছে। এ বিষয়ে আমি নির্বাচন কমিশনে অভিযোগ দিয়েছি।’

অভিযোগ মিথ্যা ও বানোয়াট দাবি করে ফুল মিয়া বলেন, ‘বৃহস্পতিবার রাতে আমাকে ও আমার লোকদের আওয়ামী লীগ ও জাতীয় পার্টির লোকজন মারধর করেছে। তারা আমার পোস্টার ছিঁড়েছে। আমি এসব ঘটনায় নির্বাচন অফিসে অভিযোগ দিয়েছি।’

সুনামগঞ্জ নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা যায়, জেলার দুই উপজেলার ১৭টি ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ১০৬ জন, সংরক্ষিত সদস্য পদে ২১১ জন ও সাধারণ সদস্য পদে ৭৪২ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। দুটি উপজেলার মোট ভোটার ২ লাখ ৮৭ হাজার ৫৯৪।

ওই দুই উপজেলায় ৪ জন করে ৮ জন রিটার্নিং অফিসার নির্বাচনি দায়িত্ব পালন করবেন।

সুনামগঞ্জ সদরে ৯টি এবং শান্তিগঞ্জ উপজেলার ৮টি ইউনয়নে নির্বাচন হবে। দুই উপজেলার ১৬ ইউনিয়নের ১৬১টি কেন্দ্রে ব্যালটের মাধ্যমে এবং সদরের এক ইউনিয়নের ৯ কেন্দ্রে ভোট হবে ইভিএমে।

সুনামগঞ্জ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মুরাদ উদ্দিন হাওলাদার বলেন, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ পরিবেশে নির্বাচন সম্পন্ন করতে সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
কেন্দ্রে কেন্দ্রে যাচ্ছে ভোটের সামগ্রী
দুই ভাইয়ের কাকে দেবেন ভোট, দ্বিধায় ভোটাররা
পঞ্চম ধাপে ৭০৭ ইউপিতে ভোট ৫ জানুয়ারি
নৌকার সমর্থকদের বিরুদ্ধে স্বতন্ত্র প্রার্থীর হামলার অভিযোগ
আ.লীগের সমাবেশে স্বতন্ত্র প্রার্থীর হামলার অভিযোগ

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
The private car overturned on the busy road

ব্যস্ত সড়কে উল্টে গেল প্রাইভেটকার

ব্যস্ত সড়কে উল্টে গেল প্রাইভেটকার উল্টে যাওয়া গাড়িটি আটক করে নিয়ে যায় পুলিশ।
ব‌রিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রা‌ফিক বিভাগের অ‌তি‌রিক্ত উপ-ক‌মিশনার শেখ মোহাম্মদ সে‌লিম বলেন, ‘দুর্ঘটনার কারণে কিছু সময় ওই লেনে যান চলাচল বন্ধ ছিল।’

ব‌রিশাল নগরীর ব‌্যস্ততম এক‌টি সড়কে প্রাইভেটকার উল্টে যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। তবে এই ঘটনায় কেউ হতাহত হয়‌নি।

শ‌নিবার রাত সাড়ে ৮টার দিকে নগরীর ফজলুল হক অ্যাভিনিউ এলাকায় জেলা জজ কোর্টের সামনে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

প্রত‌্যক্ষদর্শী নূরুল আ‌মিন বলেন, ‘লঞ্চঘাটের দিক থেকে নীল রঙের প্রাইভেটকারটি দ্রুতগতিতে কাকলীর মোড়ের দিকে যা‌চ্ছিল। এ সময় ফজললু জজ কোর্টের সামনে স্পিড ব্রেকার পার হওয়ার সময় ব্রেক ফেল করে উল্টে যায় গা‌ড়ি‌টি।’

তিনি জানান, দুর্ঘটনার সময় প্রাইভেটকারটিতে চালক ছাড়া কেউ ছিলেন না। পরে গাড়ির মা‌লিক ঝালকা‌ঠি জেলা সমাজসেবা প্রবেশন কর্মকর্তা সা‌দিয়া আয়েশা ঘটনাস্থলে আসেন। তবে দুর্ঘটনাকবলিত ওই গাড়িটি আটক করে থানায় নিয়ে গেছে পুলিশ।

দুর্ঘটনার বিষয়ে প্রাইভেটকারটির চালক মো. সাগর বলেন, কিভাবে গাড়ি উল্টে গেল বুঝতে পারছি না।

ব‌রিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রা‌ফিক বিভাগের অ‌তি‌রিক্ত উপ-ক‌মিশনার শেখ মোহাম্মদ সে‌লিম বলেন, ‘দুর্ঘটনার কারণে কিছু সময় ওই লেনে যান চলাচল বন্ধ ছিল। উল্টে যাওয়া প্রাইভেটকারটি আটক করা হয়েছে। তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
পোস্তাগোলা ব্রিজে গাড়ির ধাক্কায় অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি নিহত   
‘বেপরোয়া গতি’ কেড়ে নিল দুই বন্ধুর প্রাণ
হরিনটানায় সড়ক দুর্ঘটনায় বৃদ্ধ নিহত
রাজধানীতে বাসের ধাক্কায় বাস কন্ডাক্টর নিহত
রাজধানীতে ‘গাড়িচাপায়’ কিশোরী নিহত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Who killed Sirajuls horse

সিরাজুলের ঘোড়া হত্যা করল কে

সিরাজুলের ঘোড়া হত্যা করল কে মৃত ঘোড়া ভ্যানে নিয়ে সিরাজুল যান সদর থানায়। ছবি: সংগৃহীত
সিরাজুল বলেন, ‘ঝালকাঠি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে একটি পরিত্যক্ত কোয়ার্টারে ঘোড়াগুলো রাখতাম। তার পাশেই নজরুল নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে শুক্রবার রাতে আমার সাথে তর্ক হয়। তখন নজরুল আমাকে ধমক দিয়ে বলেছে, আমাকে ঘোড়ার গাড়ির ব্যবসা করতে দিবে না, কী করে ঘোড়া পালি সেটা সে দেখিয়ে দেবে।’

ঝালকাঠি পৌর খেয়াঘাট এলাকার তরুণ সিরাজুল ইসলাম। দেড় বছর ধরে পালন করছেন ঘোড়া। ঘোড়দৌড় আর গাড়ি চালানোর জন্য তার আস্তাবলে রয়েছে ছয়টি তরতাজা ঘোড়া। যার দুটি দিয়ে চালান গাড়ি, যা তার আয়ের অন্যতম উৎস। আর দুটি দিয়ে গ্রাম্য ঘোড়দৌড় প্রতিযোগিতা করেন সিরাজুল।

তার ঘোড়ার গাড়ি ঝালকাঠিতে বেশ জনপ্রিয়। বিয়ে, শো-ডাউন, ঘুরতে যাওয়াসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানে ভাড়া দিয়ে পয়সা রোজগার করেন সিরাজুল।

গাড়ি টানার জন্য পালন করা তার দুটি ঘোড়ার একটিকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন সিরাজুল।

তার অভিযোগ, তার সঙ্গে কথাকাটাকাটির একটা পর্যায়ে আস্তাবলের পাশে বাস করা নজরুল তার ঘোড়া হত্যার হুমকি দেয়। পরে তার একটি ঘোড়া বিষপ্রয়োগ ও পায়ের রগ কেটে হত্যা করা হয়।

সিরাজুল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ঝালকাঠি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে একটি পরিত্যক্ত কোয়ার্টারে ঘোড়াগুলো রাখতাম। তার পাশেই নজরুল নামের এক ব্যক্তির সঙ্গে তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে শুক্রবার রাতে আমার সাথে তর্ক হয়। তখন নজরুল আমাকে ধমক দিয়ে বলেছে, আমাকে ঘোড়ার গাড়ির ব্যবসা করতে দিবে না, কী করে ঘোড়া পালি সেটা সে দেখিয়ে দেবে।’

সিরাজুল আরও বলেন, ‘শনিবার সকালে ঘোড়া দুটো শিশুপার্কের মাঠে বেঁধে রেখে বাসায় যাই। দুপুর আড়াইটার দিকে ঘোড়া আনতে গিয়ে দেখি একটি ঘোড়া মৃত অবস্থায় মাঠে পড়ে আছে। দেখি ঘোড়াটির শরীরে পেটানো ও পায়ের রগ কাটার চিহ্ন।’

তিনি বলেন, ‘শনিবার সরকারি ছুটির দিন হওয়ায় পশু চিকিৎসকের স্মরণাপন্ন হতে পারিনি।’

সিরাজুলের দাবি, তার ঘোড়াকে বিষাক্ত কিছু খাইয়ে হত্যা করেছে নজরুল।

শনিবার বিকেলে প্রাণি হত্যার বিচারের দাবিতে মৃত ঘোড়া ভ্যানে তুলে সদর থানায় নিয়ে যান সিরাজুল। তিনি পুলিশের কাছে মৌখিক অভিযোগ করেন।

বলেন, নজরুল ইসলাম তার ঘোড়া হত্যা করেছেন।

পরে সদর থানা পুলিশের পরামর্শে সন্ধ্যা ৬টায় ঘোড়াটিকে পৌর কসাইখানা সংলগ্ন সুগন্ধা নদীর পাড়ে মাটিচাপা দেন সিরাজুল।

ঝালকাঠি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের পাশে সিরাজুলের ঘোড়া রাখার ঘরে গিয়ে দেখা যায়, ওই ঘরটির পাশেই অভিযুক্ত নজরুলের একটি গোয়ালঘর রয়েছে। প্রায়ই গরুর দড়ি না পেয়ে সিরাজুলকে দোষারোপ করতেন নজরুল।

ঘোড়া হত্যার অভিযোগ অস্বীকার করে নিউজবাংলাকে নজরুল ইসলাম বলেন, ‘ঘোড়ার মৃত্যু সম্পর্কে আমি কিছুই জানি না। আমাকে ষড়যন্ত্র করে ফাঁসানো হচ্ছে।’

ঝালকাঠি সদর থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম বলেন, ‘সিরাজুলকে লিখিত অভিযোগ দিতে বলেছি, অভিযোগ পেলে তা তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে সেক্ষেত্রে ঘোড়ার ময়নাতদন্ত করতে হবে।’

আরও পড়ুন:
চিরকুটে লেখা ‘ভালো থেকো, সেলিম’
এমসি কলেজের আরেক শিক্ষার্থীর মরদেহ মিলল মেসে
নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের স্ত্রীর গলায় ফাঁস, হাসপাতালে মৃত্যু
মামলার হাজিরা দিয়ে ফেরার পথে কৃষককে ‘কুপিয়ে হত্যা’
নির্মাণশ্রমিককে ‘কুপিয়ে হত্যা’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Widow arrested for beating video viral

বিধবাকে লাঠিপেটার ভিডিও ভাইরাল, অভিযুক্ত আটক

বিধবাকে লাঠিপেটার ভিডিও ভাইরাল, অভিযুক্ত আটক বিধবাকে মারধর করে আটক আইয়ুব আলী।
পুলিশ পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম জানান, দীর্ঘদিন ধরে আইয়ুব আলী ওই বিধবাকে উত্যক্ত করতেন। এর প্রতিবাদ করায় মারধরের ঘটনা ঘটেছে।

এক বিধবাকে লাঠিপেটা করা হচ্ছে- ১০ সেকেন্ডের এমন একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে।

নাটোরের সিংড়ায় শুক্রবার সকাল ৮টার দিকে ঘটনাটি ঘটলেও শনিবার তা ভাইরাল হয়। পরে শনিবার বিকেল পাঁচটার দিকে অভিযুক্ত আইয়ুব আলীকে আটক করেছে পুলিশ।

সিংড়া থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) রফিকুল ইসলাম জানান, শুক্রবার সকালে উপজেলার বেলোয়া গ্রামের এক বিধবা বাড়ির পাশ্ববর্তী এক দোকানে সেমাই কিনতে যায়। এ সময় একই গ্রামের অছিমদ্দিন প্রামাণিকের ছেলে আইয়ুব আলীর সঙ্গে তার কথাকাটাকাটি হয়। এক পর্যায়ে আইয়ুব ওই নারীকে অশ্লীল গালিগালাজের পাশাপাশি লাঠি দিয়ে একের পর এক আঘাত করেন। পরে স্থানীয়রা এগিয়ে এলে আইয়ুব ঘটনাস্থল থেকে চলে যান।

এ ঘটনায় ১০ সেকেন্ডের ভাইরাল ভিডিওটি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজরে এলে শনিবার বিকেল পাঁচটার দিকে বেলোয়া গ্রাম থেকে আইয়ুব আলীকে আটক করে পুলিশ।

পুলিশ পরিদর্শক আরও জানান, দীর্ঘদিন ধরেই আইয়ুব আলী ওই বিধবাকে উত্যক্ত করতেন। এর প্রতিবাদ করায় মারধরের ঘটনা ঘটেছে।

এ ঘটনায় আইয়ুবকে অভিযুক্ত করে একটি মামলা করেছেন ভুক্তভোগী নারী।

আরও পড়ুন:
বিধবাকে শ্লীলতাহানির ‘চেষ্টা’ মেম্বারের
যৌন নির্যাতন ও হত্যার পর নদীতে ভাসানো হয় বিধবাকে
দেশে বিধবা ৫৩ লাখ
সাবেক স্বামীকে ‘মৃত’ দেখিয়ে বিধবা ভাতার আবেদন
মধ্যরাতে নারীর ঘরে ইউপি সদস্য, সকালে বিয়ে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Detained in case of maternity death at the clinic

ক্লিনিকে প্রসূতি মৃত্যুর ঘটনায় আটক ২

ক্লিনিকে প্রসূতি মৃত্যুর ঘটনায় আটক ২ নরসিংদী বাসাইল এলাকার মেরী স্টোপস ক্লিনিক। ছবি: নিউজবাংলা
স্বজনদের অভিযোগ,ভুল চিকিৎসায় নরসিংদীতেই সালেহার মৃত্যু হয় এবং তা গোপন করে মরদেহ অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় পাঠানো হয়।

নরসিংদীতে নবজাতকসহ প্রসূতি মৃত্যুর ঘটনায় পুলিশ আটক করেছে মেরী স্টোপস ক্লিনিকের ম্যানেজারসহ দুজনকে।

ভুল চিকিৎসার অভিযোগ তুলে শহরের বাসাইল এলাকার ক্লিনিকটিতে শনিবার দুপুরে ভাঙচুর করেন স্থানীয়রা।

পুলিশ ও রোগীর স্বজনরা জানান, শহরের শালিধা এলাকার হান্নান মিয়ার স্ত্রী সালেহা বেগমকে শুক্রবার ভর্তি করা হয় মেরী স্টোপস ক্লিনিকে। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক হেলেনা হালিম রিপোর্ট দেখেই দ্রুত সিজার করার পরামর্শ দেন। প্রসূতি ও তার স্বজনরা রাজি না হলে চিকিৎসক তাদের জানান দেরি করলে বাচ্চার ক্ষতি হবে।

স্বজনদের অভিযোগ, সালেহা বেগমকে অনেকটা জোর করেই অপারেশনের জন্য নিয়ে যান চিকিৎসক হেলেনা। কিন্তু অপারেশনের টেবিলেই সালেহা অসুস্থ হয়ে পড়েন। তখন পরিস্থিতি বেগতিক দেখে চিকিৎসক রোগীকে ঢাকায় রেফার্ড করেন। স্বজনদের না জানিয়েই তাকে অ্যাম্বুলেন্সে তুলে দেয়া হয়।

রাতে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসক মা ও নবজাতককে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

ভুল চিকিৎসায় নরসিংদীতেই সালেহার মৃত্যু হয় এবং তা গোপন করে মরদেহ অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় পাঠানো হয় বলে অভিযোগ তুলে স্বজন ও এলাকাবাসী শনিবার দুপুরে ক্লিনিকে হামলা চালান।

নরসিংদীর সিভিল সার্জন ডা. মো. নুরুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ ঘটনায় দুপুরে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের নেতৃত্বে ক্লিনিকে মোবাইল কোর্ট পরিচালনা করা হয়। ক্লিনিকের ম্যানেজারসহ দুজনকে আটক করা হয়েছে। তদন্তসাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

প্রসূতির মৃত্যু ও ভাঙচুরের ঘটনা নিয়ে মেরী স্টোপস ক্লিনিক সংশ্লিস্ট কেউ বক্তব্য দিতে রাজি হননি।

আরও পড়ুন:
ভুল চিকিৎসায়ই প্রসূতি ও নবজাতকের মৃত্যু, তদন্ত প্রতিবেদন
প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ, সাড়ে ৩ লাখে মীমাংসা
টিউমার রেখে প্রসূতির পেট সেলাই, তদন্ত কমিটি গঠন

মন্তব্য

বাংলাদেশ
A farmer was killed by lightning on his way home with a duck

হাঁস নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু

হাঁস নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে বজ্রপাতে কৃষকের মৃত্যু
ওসি নজরুল ইসলাম বলেন, ‘নিহত আয়েন উদ্দীন হাঁসের খামার রয়েছে। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বাড়ির পাশে গুটিয়ার বিল থেকে হাঁসের দল নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। আয়েন উদ্দীন পেশায় কৃষক।’

নওগাঁয় বিল থেকে হাঁসের দল নিয়ে বাড়ি ফেরার পথে বজ্রপাতে এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে।

শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে সদর উপজেলার শিকারপুর ইউনিয়নে সরাইল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ওই কৃষকের নাম আয়েন উদ্দীন। তার বয়স ৫০ বছর। তিনি শিকারপুর ইউনিয়নের সরাইল গ্রামের বাসিন্দা।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন করেছেন নওগাঁ সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জুয়েল।

স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ওসি বলেন, ‘নিহত আয়েন উদ্দীন হাঁসের খামার রয়েছে। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে বাড়ির পাশে গুটিয়ার বিল থেকে হাঁসের দল নিয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। পথে বজ্রপাতে ঘটনাস্থলেই তিনি মারা যান। আয়েন উদ্দীন পেশায় কৃষক।’

ওসি আরও জানান, বজ্রপাতে মারা যাওয়ার কারণে নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় কোনো অভিযোগ করা হয়নি। রোববার সকালে তাকে পারিবারিক গোরস্থানে দাফন করা হবে।

আরও পড়ুন:
হাসপাতালে সেবা নেয়া কমায় বাড়ছে অন্তঃসত্ত্বার ঝুঁকি
ট্রলারে বজ্রপাত, হাসপাতালে ৩ জেলে
বজ্রপাতে প্রবাসীর মৃত্যু
কবুতর ধরতে গিয়ে কার্নিশ থেকে পড়ে কিশোরের মৃত্যু
এসি মেরামতের সময় ভবন থেকে পড়ে মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Monira is getting the Prime Ministers award for her garden

ছাদবাগান করে মনিরা পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর পুরস্কার

ছাদবাগান করে মনিরা পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর পুরস্কার ছাদবাগান করে প্রধানমন্ত্রীর পুরস্কার পাচ্ছেন গাজীপুরের মনিরা সুলতানা মুনমুন। ছবি: নিউজবাংলা
২০১৪ সালে শখের বশে অল্প কিছু গাছ এনে ছাদে লাগিয়েছিলেন মনিরা। এরপর হঠাৎ চিন্তায় আসে কীভাবে এটিকে উৎপাদনমুখী ও বাণিজ্যক করা যায়। সেই চিন্তা থেকেই পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে বিভিন্ন জাতের ওষুধি গাছ, সবজি, নানা ধরনের ফল ও ফুলের গাছ আমদানি করেন।

‘বাড়ির ছাদে বাগান সৃজন’ ক্যাটাগরিতে প্রধানমন্ত্রীর পুরস্কার পাচ্ছেন গাজীপুরের মনিরা সুলতানা মুনমুন। তিনি আমেরিকা ফেরত নারী। এই ক্যাটাগরিতে এ বছর তিনি প্রথম হয়েছেন।

পরিবেশ বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয় জ্যেষ্ঠ তথ্য কর্মকর্তা দীপঙ্কর বরের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে গত ২৪ মে পুরস্কার পাওয়ার তথ্য জানানো হয়।

প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় পুরস্কারের জন্য এ বছর ৭ ব্যক্তি ও ১৬টি প্রতিষ্ঠানকে চূড়ান্তভাবে মনোনীত করেছে সরকার। ১৯৯৩ সাল থেকে চালু হওয়া প্রতিটি শ্রেণির পুরস্কার প্রাপ্তদের সনদপত্র এবং অর্থ দেয়া হয়।

মনিরা সুলতানা শ্রীপুরের প্রহলাদপুর ইউনিয়নের দমদমা গ্ৰামের ব্যবসায়ী আকরাম হোসেন বাঁদশার স্ত্রী।

গাজীপুরের উত্তর ছায়াবিথী এলাকায় মনিরা নিজ বাড়ির ছাদে গড়ে তুলেছেন দেশি, বিদেশি উদ্ভিদের বিশাল সমারোহ। এ কাজে তাকে উৎসাহ ও সার্বিক সহযোগিতা করেছেন স্বামী আকরাম হোসেন।

কীভাবে শুরু

২০১৪ সালে শখের বশে অল্প কিছু গাছ এনে ছাদে লাগিয়েছিলেন মনিরা। এরপর হঠাৎ চিন্তায় আসে কীভাবে এটিকে উৎপাদনমুখী ও বাণিজ্যক করা যায়। সেই চিন্তা থেকেই পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে বিভিন্ন জাতের ওষুধি গাছ, সবজি, নানা ধরনের ফল ও ফুলের গাছ আমদানি করেন। স্বামী আকরাম হোসেন যতবার বিভিন্ন দেশে গেছেন, ততবার তার জন্য নিয়ে এসেছেন কোনো না কোনো উদ্ভিদ।

মনিরা জানান, ছাদটি পরিপূর্ণভাবে সাজিয়ে সেখান থেকে কিছু চারা বিক্রি করেছেন। এর পরেই মাথায় আসে আরও বড় পরিসরে ছাদে বিভিন্ন ওষুধি গাছ ও ফলমূলের চারা উৎপাদন করবেন। একই সঙ্গে চারা উৎপাদন, ছাদ কৃষিতে উদ্ভিদের পরিচর্যা ও অল্প জায়গায় সর্বোত্তম ব্যবহার নিয়ে লোকজনকে প্রশিক্ষণ দেবেন।

ছাদবাগান করে মনিরা পাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রীর পুরস্কার

তার পরিকল্পনা বাস্তবায়নের জন্য ফেসবুকে ‘প্লান্টস ফ্রম মুন’ নামের একটি গ্রুপ খুলেন। সেই গ্রুপের সদস্য হন অসংখ্য মানুষ। দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে লোকজন তার সঙ্গে যোগাযোগ করতে লাগলেন।

শুধু ছাদ বাগানই নয়, তিনি ছাদে মাছও চাষ করছেন। মাছ পালনের পানির হাউজ থেকে ফাইটোপ্লাংকটন মিশ্রিত পানি দেয়া হয় গাছের গোড়ায়। এতে গাছ অনেক পুষ্টি পায়।

এ ছাড়া বাড়িতে উৎপাদিত সবজির উচ্ছিষ্টাংশ বিশেষ পদ্ধতিতে জৈব সারের রূপান্তর করেন। এসব সার বাজারে পাওয়া যেকোনো সারের চেয়ে অনেক বেশি নিরাপদ বলে জানান মনিরা। অর্গানিক সবজি উৎপাদনের জন্য তিনি এগুলো গাছকে খাবার হিসেবে দেন।

কী ধরনের গাছ রয়েছে

মনিরার ছাদ বাগানে সব মিলিয়ে উদ্ভিদের সংখ্যা ১ হাজার ৪৩৯টি। এর মধ্যে ওষুধি গাছ আছে ৪০ প্রজাতির। শোভাবর্ধন করা গাছ আছে ৫৬ প্রজাতির। বিশেষ প্রজাতির গাছের সংখ্যা ২৬টি। দেশীয় বিলুপ্তপ্রায় প্রজাতির গাছ আছে ৭ প্রজাতির। ফলজ গাছের সংখ্যা ৯৯টি। অন্যান্য অন্তত ১০০ প্রজাতির গাছ আছে তার ছাদে।

ওষুধি গাছের মধ্যে আছে অর্জুন, আমলকি, বহেরা, হরিতকী, ঘৃতকুমারী, নিম, তুলসি, থানকুনি, বাসক, পেইন কিলার, অ্যাড্রেসিয়া বেরি, ক্লিন স্টোমাক, চেইন অফ গ্লোরি, রুইলিয়া রেসিলিয়া, ডেইজি, কিডনি প্লান্ট, ভ্যানিলা অর্কিড, কর্পূর, জয়ত্রী, গোলমরিচ, সুইট রেসিন, ট্রি রেসিন, কারি পাতা প্রভৃতি।

সবজির মধ্যে আছে লেটুস, করলা, ধনেপাতা, বেগুন, কাকরোল, পটল, মিষ্টি কুমড়া, চাল কুমড়া, লাউ, লাল ঢেরস, সিম, শসা, টমেটো, মরিচসহ আরো বিভিন্ন প্রজাতি।

দেশীয় বিলুপ্তপ্রায় জাতের মধ্যে আছে ওল্ড চন্ডাল, আগর, সিভিট, হলদু, কৃষ্ণ বট, অশোক, কর্পূর প্রভৃতি।

প্রথম পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পাওয়ার বিষয়ে মনিরা বলেন, ‘ছাদ কৃষিতে অনেক উদ্যোক্তা তৈরি করতে চাই। তাই প্রতি বছর প্রশিক্ষণ, চারা ও বীজ বিতরণসহ সেমিনার করি। আশা করি, আগামীতে কৃষিতে আমরা আরও ভালো করব।’

আরও পড়ুন:
ছাদবাগান করলে ১০ শতাংশ গৃহকর ছাড়

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The investigation into the corruption of that Nazim Uddin started on Monday

সেই নাজিমের দুর্নীতির তদন্তে এলজিআরডি

সেই নাজিমের দুর্নীতির তদন্তে এলজিআরডি নাজিম উদ্দীন। ছবি: সংগৃহীত
স্থানীয় সরকার বিভাগের সাতক্ষীরার উপপরিচালক মাশরুবা ফেরদৌস জানান, পৌরসভার সিইও নাজিম উদ্দীনের দুর্নীতি গণমাধ্যমে এলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নজরে আসে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ৯ মে স্থানীয় সরকার বিভাগের খুলনার বিভাগীয় পরিচালক গিয়াসউদ্দীনকে দিয়ে তদন্ত করে এক মাসের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশ দেয়।

সাতক্ষীরা পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) নাজিম উদ্দীনের দুর্নীতির অভিযোগের তদন্ত শুরু হচ্ছে সোমবার।

স্থানীয় সরকার বিভাগের (এলজিআরডি) খুলনা বিভাগীয় পরিচালক গিয়াসউদ্দীন সাতক্ষীরা সার্কিট হাউসে এ দিন তদন্ত কার্যক্রম পরিচলনা করবেন। সিইও নাজিমের বিরুদ্ধে ঘুষগ্রহণ, মাদক সেবন, হত্যার হুমকিসহ দুর্নীতির বিস্তর অভিযোগ রয়েছে।

চার বছর আগে কুড়িগ্রামে সাংবাদিক আরিফুল ইসলামকে মধ্যরাতে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত বসিয়ে সাজা দেয়া তৎকালীন আরডিসি নাজিম উদ্দীন।

চলতি বছরের ৪ জানুয়ারি সাতক্ষীরা পৌরসভার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে যোগ দেন নাজিম উদ্দীন।

পৌরসভার একাধিক কর্মকর্তা-কর্মাচারী জানান, যোগ দেয়ার শুরু থেকেই নানা অনিয়মের অভিযোগ উঠতে থাকে তার বিরুদ্ধে।

অস্থায়ী কর্মচারীদের চাকরি স্থায়ী করার জন্য অন্তত হাফ ডজন মানুষের কাছ থেকে বিকাশ, নগদ ও ব্যাংকের মাধ্যমে ঘুষ নেয়ার অভিযোগ রয়েছে এই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে।

এ বিষয়ে নাজিম উদ্দীনের সাবেক ব্যক্তিগত সহকারী কাজী বিরাজ হোসেন জানান, অস্থায়ী কর্মচারীদের চাকরি স্থায়ী করতে কমপক্ষে ৬ জনের কাছ থেকে নাজিম উদ্দীন কমপক্ষে ৬ লাখ টাকা ঘুষ নিয়েছেন। নিজ অফিসে বসে ফেনসিডিল ও মাদক সেবন করেন। পৌরসভার সরকারি গাড়িতে করে সীমান্ত থেকে প্রতিদিন মাদক এনে অফিস ও তার বাসায় পৌঁছে দিতে হতো। এসব ঘটনায় অতিষ্ঠ হয়ে প্রতিবাদ করায় নাজিম উদ্দীন পিটিয়ে তাকে অফিস থেকে বের করে দেন।

সাতক্ষীরা পৌরসভার অস্থায়ী কর্মচারী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আরিফুর রহমান বাপ্পী জানান, তাকেসহ সাত জনকে কোনো নোটিশ ছাড়াই চাকরি থেকে ছাঁটাই করেছেন সিইও নাজিম। সে সঙ্গে তিনি পানি বিভাগের ২৭ জনের বেতন বন্ধ করে পৌরসভায় প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছেন।

কর্মচারী ইউনিয়ন নেতা আরিফুর জানান, প্রবেশ নিষিদ্ধের পর পৌরসভায় ঢুকলে দুই বছরের জেল ও জরিমানা অথবা গুলি করে হত্যার হুমকিও দিয়েছেন সিইও নাজিম উদ্দীন।

সাতক্ষীরা পৌরসভার লাইসেন্স শাখার কর্মচারী সোহেল জামান রুবেলের অভিযোগ, ঈদের আগে বেতন বোনাস না পেয়ে মেয়রকে জানানোর কারণে বিনা নোটিশে তাকে চাকরি থেকে অব্যাহতিও দিয়েছেন নাজিম উদ্দীন।

পৌরসভার মেয়র তাজকীন আহমেদ চিশতী বলেন, ‘সিইও নাজিম উদ্দীনের বিরুদ্ধে পৌরসভার অস্থায়ী কর্মচারীরা প্রমাণসহ আমার কাছে অভিযোগ করেছেন। আমি তা স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছি। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে অনুলিপি দিয়েছি।’

স্থানীয় সরকার বিভাগের সাতক্ষীরার উপপরিচালক মাশরুবা ফেরদৌস জানান, পৌরসভার সিইও নাজিম উদ্দীনের দুর্নীতি গণমাধ্যমে এলে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের নজরে আসে। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ৯ মে স্থানীয় সরকার বিভাগের খুলনার বিভাগীয় পরিচালক গিয়াসউদ্দীনকে দিয়ে তদন্ত করে এক মাসের মধ্যে প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশ দেয়।

তদন্ত কর্মকর্তা সোমবার সাতক্ষীরা সার্কিট হাউসে বসে তদন্ত কাজ করবেন।

২০২০ সালের ২০ মার্চ কুড়িগ্রামের সাংবাদিক আরিফুল ইসলামকে মধ্যরাতে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালতে সাজা দেন তৎকালীন আরডিসি এই নাজিম উদ্দীন। পরে বিভাগীয় শাস্তি হিসেবে তার বেতন কাঠামো ষষ্ঠ থেকে সপ্তমে নামানো হয়।

এর আগে ২০১৮ সালের মে মাসে কক্সবাজার শহরের কলাতলী এলাকার বৃদ্ধ নফু মাঝিকে কান ধরে টেনে হিঁচড়ে মারধরের ঘটনায় ব্যাপক সমালোচিত হন তিনি।

মন্তব্য

p
উপরে