নীলফামারীতে টানা ছয়-এর সামনে কামাল আহমেদ

player
নীলফামারীতে টানা ছয়-এর সামনে কামাল আহমেদ

ভোটের আগে শেষবারের প্রচারে শহরের প্রধান শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে বক্তব্য রাখেন নীলফামারী পৌরসভার মেয়র কামাল আহমেদ। 

‘১৯৮৯ সাল থেকে টানা পাঁচবার আপনাদের সমর্থন নিয়ে আমি এলাকার মানুষের সেবা ও উন্নয়ন করে চলেছি। অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে নীলফামারী পৌরসভা আজ দেশে বিশেষ স্থান করে নিয়েছে। সারাদেশের পৌরসভাগুলোর নেতৃত্ব দেয়ার জন্য আমাকে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।’

১৯৮৯ সাল থেকে নীলফামারী পৌরসভার চেয়ারম্যান ও মেয়র তিনি। পাঁচবার ভোটের লড়াইয়ে নেমে প্রতিবারই এলাকাবাসীর মন জয় করতে পেরেছেন তিনি। এবার ষষ্ঠবারের ভোটের ময়দানে তিনি।

নীলফামারী জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি দেওয়ান কামাল আহমেদ এবারও মেয়র হতে পারবেন কি না, সে সিদ্ধান্ত শহরবাসী জানাবে রোববার। সেদিন দেশের নানাপ্রান্তে কয়েক শ ইউনিয়নের পাশাপাশি কয়েকটি পৌরসভাতেও ভোট হবে।

ভোটের আগে শেষবারের প্রচারে শুক্রবার সন্ধ্যায় জেলা শহরের প্রধান শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে বক্তব্য রাখেন কামাল আহমেদ।

তিনি বলেন, ‘১৯৮৯ সাল থেকে টানা পাঁচবার আপনাদের সমর্থন নিয়ে আমি এলাকার মানুষের সেবা ও উন্নয়ন করে চলেছি। অনেক চড়াই উৎরাই পেরিয়ে নীলফামারী পৌরসভা আজ দেশে বিশেষ স্থান করে নিয়েছে। সারাদেশের পৌরসভাগুলোর নেতৃত্ব দেয়ার জন্য আমাকে সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।’

আবারও নির্বাচিত হলে অসমাপ্ত প্রকল্পগুলো বাস্তবায়ন করে নীলফামারী পৌরসভাকে আধুনিক মানসম্মত পৌরসভায় গড়ে তোলার অঙ্গীকার করেন কামাল আহমেদ।

নগরবাসীকে কোনো ভূল কোন সিদ্ধান্ত না নেয়ার জন্য পৌরবাসীর প্রতি অনুরোধ করেন তিনি। বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সাথে সু-সম্পর্ক এবং সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে আসা যাওয়ার কারণে সংশ্লিষ্ঠদের সঙ্গে সম্পর্কের কারণে অনেক উন্নয়ন প্রকল্প এই পৌরসভায় নেয়ার সুযোগ হয়েছে। অন্য কেউ এটি পারবে না।’

কামাল আহমেদ জাতীয় সংসদ নির্বাচন করতে চান বলে যে প্রচার আছে, সে বিষয়েও তার অবস্থান তুলে ধরেন তিনি। জানান, সদর আসন নীলফামারী-২ এর সংসদ সদস্য সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব আসাদুজ্জামান নূর যতদিন প্রার্থী হবেন, তত দিন তিনি মনোনয়ন ফরম তুলবেন না।

তিনি বলেন, ‘তার (আসাদুজ্জামান নূর) মতো একজন মানুষের সাথে নিজেকে তুলনা করা বেয়াদবির শামিল। তার কাছ থেকে আমি শিখি, অভিজ্ঞতা অর্জন করি, তিনি অনেক বড় মাপের মানুষ।’

নীলফামারী পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মসফিকুল ইসলাম রিন্টুর সভাপতিত্বে সমাবেশে পঞ্চগড় পৌরসভার মেয়র জাকিয়া খাতুন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মমতাজুল হকও বক্তব্য দেন।

সমাবেশের আগে কয়েক হাজার নারী ও পুরুষ নৌকা প্রতীকের সমর্থনে মিছিল করে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এ সময় খোলা জিপে জনতার উদ্দেশে হাত নাড়ান কামাল আহমেদ।

আরও পড়ুন:
নবীনগরের ১৩ ইউপিতে আ.লীগের ১৫ বিদ্রোহী
বরগুনায় নৌকার জয় উৎসবে হামলা,  আহত ৫ 
নির্বাচনি সহিংসতায় গুলিতে নিহত ‌১
মেঘনায় গোলাগুলিতে যুবলীগ নেতা নিহত
সাত ইউপিতে ভোট হচ্ছে না রোববার

শেয়ার করুন

মন্তব্য

পাইকপাড়ায় আগুন: ক্ষতিগ্রস্তদের কান্নায় ভারী পরিবেশ

পাইকপাড়ায় আগুন: ক্ষতিগ্রস্তদের কান্নায় ভারী পরিবেশ

ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘আগুন লাগিয়ে দেয়ার কোনো আলামত আমরা পাইনি। যখন আগুন লাগে তখন বিদ্যুৎ ছিল ওই গ্রামে। আমরা ধারণা করছি, কোনো চুলা থেকে আগুনের সূত্রপাত।’

রাতের অন্ধকারে লাগা আগুন কেড়ে নিয়েছে মাথা গোঁজার ঠিকানা। পুড়ে গেছে ঘরের আসবাবসহ নানা সরঞ্জাম। সেই শোকে প্রতিবেশী ও শুভাকাঙ্খীদের গলা জড়িয়ে ক্ষণে ক্ষণে কেঁদে উঠছে দিনমজুর নেকো মিয়ার স্ত্রী শিরিন আক্তার। কাঁদতে কাঁদতে তিনি সংজ্ঞা হারাচ্ছেন। আবারও ঢুকরে কেঁদে উঠেছেন।

বৃহস্পতিবার সকালে তার সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করে নিউজবাংলা। এক পর্যাযে তিনি বলেন, ‘কনকনে শীতে তেমন মাঠে কাজ মেলেনি। বাড়িতে পালিত গাভীর দুধ বিক্রি করে তার সংসার ও সন্তানের লেখাপড়ার খরচ চলতো। কিন্তু অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় তার ৩টি গরু ও ৩টি ছাগল পুড়ে কয়লা হয়ে যায়। সকালে একটি ক্ষেতে সেগুলো মাটি চাপা দেয়া হয়েছে।’

সদর উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের পটুয়া পাইকপাড়া গ্রামে বুধবার রাত ১১টার দিকে আগুন লাগে। এতে পুড়ে গেছে গ্রামের অর্ধশতাধিক ঘর। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আরও ১০-১২টি বসতি।

সরেজমিনে দেখা যায়, আশপাশের বিভিন্ন এলাকা থেকে লোকজন এই গ্রামে এসেছেন। সঙ্গে আনা শীতবস্ত্র ও শুকনো খাবার দিয়ে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর পাশে থাকার চেষ্টা করছেন তারা। সব হারানো পরিবারগুলোর কান্নায় সেখানে ভারী হয়ে আছে পরিবেশ।

পাইকপাড়ায় আগুন: ক্ষতিগ্রস্তদের কান্নায় ভারী পরিবেশ
স্বজনকে জড়িয়ে ধরে কাঁদতে দেখা যায় শিরিন আক্তার

পুড়ে যাওয়া ঘরের মধ্যে নিজের নতুন বই আর খেলনা খুঁজেছিল ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী লিমা আক্তার। সে বলে,‘আমার নতুন বইগুলো পুড়ে গেছে। আমার বাবার জামানো টাকা, আমাদের কাপড়-চোপড় সবকিছু পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।’

আগুনের সূত্রপাত নিয়ে এ দিন স্থানীয়দের মধ্যে ভিন্ন বক্তব্য পাওয়া গেছে। কেউ বলছেন, আগুন ধরিয়ে দেয়া হয়েছে। অনেকে আবার চুলা কিংবা বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুন লাগার বিষয়টি সামনে এনেছেন।

এ বিষয়ে ঠাকুরগাঁও ফায়ার সার্ভিসের ইনচার্জ ফরহাদ হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আগুন লাগিয়ে দেয়ার কোনো আলামত আমরা পাইনি। যখন আগুন লাগে তখন বিদ্যুৎ ছিল ওই গ্রামে। আমরা ধারণা করছি, কোনো চুলা থেকে আগুনের সূত্রপাত।’

ঠাকুরগাঁওযের জেলা প্রশাসক মাহবুবুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রাতেই ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ ও শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়েছে। সকাল থেকে তাদের নামের তালিকা ও ক্ষতির পরিমাণ তালিকাভুক্তির কাজ চলছে। আমরা সরকারিভাবে যতটুকু পারি তাদের জন্য করব।’

আরও পড়ুন:
নবীনগরের ১৩ ইউপিতে আ.লীগের ১৫ বিদ্রোহী
বরগুনায় নৌকার জয় উৎসবে হামলা,  আহত ৫ 
নির্বাচনি সহিংসতায় গুলিতে নিহত ‌১
মেঘনায় গোলাগুলিতে যুবলীগ নেতা নিহত
সাত ইউপিতে ভোট হচ্ছে না রোববার

শেয়ার করুন

বড় ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে ছোট ভাই খুন

বড় ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে ছোট ভাই খুন

জমি নিযে বিরোধের জেরে ছোট ভাইকে খুনের অভিযোগ উঠেছে। ছবি: নিউজবাংলা

নরসিংদী শহর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই শফিকুল আলম বলেন, ‘জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরেই এ হত্যা সংঘটিত হয়েছে। এর বাইরে কোনো বিষয় আছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।’

নরসিংদীর নাগরিয়াকান্দিতে জমিজমাসংক্রান্ত বিরোধের জেরে বড় ভাইয়ের বিরুদ্ধে ছোট ভাইকে ছুড়িকাঘাতে খুনের অভিযোগ উঠেছে।

উপজেলার কামারগাঁও এলাকায় বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত নবী মিয়ার বয়স ৪০ বছর।

নিউজবাংলাকে ঘটনা নিশ্চিত করেছেন নরসিংদী শহর পুলিশ ফাঁড়ির এসআই শফিকুল আলম।

নিহতের স্বজন ও স্থানীয়দের বরাতে তিনি জানান, জমিজমা নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে নবী মিয়ার সঙ্গে তার বড় ভাই আলী হোসেনের মনমালিন্য চলে আসছিল। এরই মধ্যে তাদের পারিবারিক সম্পত্তি ভাগাভাগিও করা হয়।

কিন্তু আজ সকালে বাড়ির সীমানায় দেয়াল উঠানোকে কেন্দ্র করে দুই ভাইয়ের মধ্যে বাকবিতণ্ডা শুরু হয়। একপর্যায়ে বড় ভাই আলী হোসেন উত্তেজিত হয়ে নবী মিয়ার পেটে ছুরিকাঘাত করেন।

পরে প্রতিবেশীরা নবী মিয়াকে আহতাবস্থায় উদ্ধার করে নরসিংদী সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

স্বজনরা জানান, স্থানীয় একটি জুট মিলে চাকরি করতেন নবী মিয়া। কিন্তু চাকরি চলে যাওয়ার পর পেনশনের টাকা তুলতে নবীর ওপর চাপ দিয়েছিলেন আলী হোসেন। কিন্তু টাকা তুলে দিতে অস্বীকৃতি জানালে নবীকে তখন মারধর করেন বড় ভাই আলী।

এসআই শফিকুল আলম বলেন, ‘জমিসংক্রান্ত বিরোধের জেরেই এই হত্যা সংঘটিত হয়েছে। এর বাইরে কোনো বিষয় আছে কি না, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। ঘটনার পর থেকে আলী হোসেন পলাতক। তাকে আটকের চেষ্টা চলছে।’

আরও পড়ুন:
নবীনগরের ১৩ ইউপিতে আ.লীগের ১৫ বিদ্রোহী
বরগুনায় নৌকার জয় উৎসবে হামলা,  আহত ৫ 
নির্বাচনি সহিংসতায় গুলিতে নিহত ‌১
মেঘনায় গোলাগুলিতে যুবলীগ নেতা নিহত
সাত ইউপিতে ভোট হচ্ছে না রোববার

শেয়ার করুন

শাবি ভিসির ‘আপত্তিকর মন্তব্য’: জাবি শিক্ষকদের প্রতিবাদ

শাবি ভিসির ‘আপত্তিকর মন্তব্য’: জাবি শিক্ষকদের প্রতিবাদ

শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ।

শিক্ষক সমিতির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের নিয়ে যে মন্তব্য করেছেন, তা অত্যন্ত  অবমাননাকর ও অসম্মানজনক।’

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) ছাত্রীদের নিয়ে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসির ‘আপত্তিকর মন্তব্যের’ প্রতিবাদ জানিয়েছে জাবি শিক্ষক সমিতি ও বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ। একই সঙ্গে ক্ষোভও জানিয়েছেন শিক্ষকরা।

সংগঠন দুটির সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বৃহস্পতিবার এই প্রতিবাদ ও ক্ষোভ জানানো হয়।

শিক্ষক সমিতির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রীদের নিয়ে যে মন্তব্য করেছেন, তা অত্যন্ত অবমাননাকর ও অসম্মানজনক।

‘শাবি উপাচার্যের আপত্তিকর মন্তব্যের বিরুদ্ধে আমরা তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং ক্ষোভ প্রকাশ করছি। আমরা আশা করি, তিনি প্রকাশ্যে তার ভুল স্বীকার করে অশোভন মন্তব্য প্রত্যাহার করবেন।’

বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘সম্প্রতি শাবি উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের তার সন্তানতুল্য শিক্ষার্থীদের সম্পর্কে অবমাননাকর ও কুরুচিপূর্ণ বক্তব্য দেন। বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ তার বক্তব্যের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে।

‘ওই মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম বিশেষ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে, যা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ করছে।’

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমদের পদত্যাগের দাবিতে চলা আন্দোলনের মধ্যে একটি অডিও ক্লিপ ফাঁস হয়। এতে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীদের নিয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করতে শোনা যায় এক ব্যক্তিকে।

যারা এই অডিওটি ফাঁস করেছেন তাদের দাবি, এটি উপাচার্য ফরিদ উদ্দিনের। ছাত্রীদের রাতে বাইরে থাকা নিয়ে কটাক্ষ করছেন উপাচার্য।

বিষয়টি নিয়ে মঙ্গলবার বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক ছাত্রীর সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার। তারা জানিয়েছেন, অডিওটি উপাচার্য ফরিদ উদ্দিনের, তবে এটি ২০১৯ সালের।

অডিওতে শোনা যায়, ‘যারা এই ধরনের দাবি তুলেছে, যে বিশ্ববিদ্যালয় সারারাত খোলা রাখতে হবে, এইটা একটা জঘন্য রকম দাবি। আমরা মুখ দেখাইতে পারতাম না। এখানে আমাদের ছাত্রনেতা বলছে যে, জাহাঙ্গীরনগরের মেয়েদের সহজে কেউ বউ হিসেবে চায় না। কারণ সারারাত এরা ঘোরাফেরা করে। বাট আমি চাই না যে আমাদের যারা এত ভালো ভালো স্টুডেন্ট, যারা এত সুন্দর, এত সুন্দর ডিপার্টমেন্টগুলো, বিখ্যাত সব শিক্ষক... তারা যাদের গ্র্যাজুয়েট করবে, এরকম একটা কালিমা লেপুক তাদের মধ্যে।

‘ওই জায়গাটা কেউ চায় না, কোনো গার্ডিয়ানও চান না কিন্তু। এখন আমরা যদি কোনো মেয়েকে বলি তোমার বাবা-মা কাউকে ফোন করব... তখন তোমরাই তো এতে বাধা দিবা... না না না এইটা হবে না, দেখ হয়রানি করতেছে। কিন্তু এইটা তো প্রত্যেকের নৈতিক দায়িত্ব। তোমাদেরও নৈতিক দায়িত্ব যে, এই মেয়ে কেন রাতের বেলা সোয়া দশটা পর্যন্ত স্যাররে সময় দিসে?’

ওই ক্লিপে আরও শোনা যায়, ‘আমি মাঝে মাঝে ঢাকা থেকে যখন আসি, রাতে ১২টা-১টা বেজে যায়। আমি দেখি যে আমাদের ওয়ান কিলোমিটার রাস্তা দিয়া ছেলে-মেয়ে হাত ধরাধরি করে কনসালটিং করতাছে। একটা অঘটন ঘটে গেলে দায়দায়িত্ব ভাইস চ্যান্সেলরকে নিতে হবে। যত দোষ, নন্দ ঘোষ। ভাইস চ্যান্সেলর দায়ী সে জন্য।’

এই ক্লিপের বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। আন্দোলনকারীরা তাকে বাসভবনে অবরুদ্ধ করে রেখেছেন। ফোনে যোগাযোগের একাধিক চেষ্টা করা হলেও রিসিভ করেননি তিনি।

আরও পড়ুন:
নবীনগরের ১৩ ইউপিতে আ.লীগের ১৫ বিদ্রোহী
বরগুনায় নৌকার জয় উৎসবে হামলা,  আহত ৫ 
নির্বাচনি সহিংসতায় গুলিতে নিহত ‌১
মেঘনায় গোলাগুলিতে যুবলীগ নেতা নিহত
সাত ইউপিতে ভোট হচ্ছে না রোববার

শেয়ার করুন

রিমান্ডে আরসা প্রধানের ভাই শাহ আলী

রিমান্ডে আরসা প্রধানের ভাই শাহ আলী

আরসাপ্রধান আতাউল্লাহর ভাই শাহ আলী। ছবি: নিউজবাংলা

কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক চন্দন কুমার চক্রবর্তী জানান, কড়া নিরাপত্তায় এদিন সকাল ১১টার দিকে আদালতে তোলা হয় শাহ আলীকে। তিন মামলায় তাকে সাতদিন করে রিমান্ড চেয়েছিল পুলিশ। শুনানি শেষে প্রত্যেক মামলায় দুইদিন করে মোট ৬ দিন রিমান্ডে নেয়ার অনুমতি দেন বিচারক।

মিয়ানমারের সশস্ত্র সন্ত্রাসী গ্রুপ আরকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি বা আরসার প্রধান আতাউল্লাহ আবু জুনুনীর ভাই শাহ আলীকে ৬ দিনের রিমান্ডে পেয়েছে পুলিশ।

কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম শ্রী গিয়ান তংঞ্চঙ্গা বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তাকে রিমান্ডে পাঠান।

নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক চন্দন কুমার চক্রবর্তী।

তিনি জানান, কড়া নিরাপত্তায় এদিন সকাল ১১টার দিকে আদালতে তোলা হয় শাহ আলীকে। তিন মামলায় তাকে সাতদিন করে রিমান্ড চেয়েছিল পুলিশ। শুনানি শেষে প্রত্যেক মামলায় দুইদিন করে মোট ৬ দিন রিমান্ডে নেয়ার অনুমতি দেন বিচারক।

রোববার শাহ আলীকে আটকের পর তার বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে মামলা করেছে পুলিশ। আরও একটি মামলা হয়েছে অপহরণের অভিযোগে। বুধবার তার রিমান্ড শুনানি হওয়ার কথা থাকলেও তা পিছিয়ে যায়।

পুলিশের করা মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, শাহ আলীর বিরুদ্ধে বিরুদ্ধে ঢাকার হাজারীবাগ থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা আছে। ২০১৯ সালে পুলিশের করা ওই মামলায় তিনি হাইকোর্ট থেকে জামিনে ছিলেন। তার বাংলাদেশি জাতীয় পরিচয়পত্রও আছে।

আরও পড়ুন:
নবীনগরের ১৩ ইউপিতে আ.লীগের ১৫ বিদ্রোহী
বরগুনায় নৌকার জয় উৎসবে হামলা,  আহত ৫ 
নির্বাচনি সহিংসতায় গুলিতে নিহত ‌১
মেঘনায় গোলাগুলিতে যুবলীগ নেতা নিহত
সাত ইউপিতে ভোট হচ্ছে না রোববার

শেয়ার করুন

বাবার গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার, ছেলে আটক

বাবার গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার, ছেলে আটক

বাবাকে হত্যার অভিযোগে ছেলেকে আটক করেছে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা

দামকুড়া থানার ওসি মাহবুব আলম বলেন, ‘এ হত্যার পেছনে আর কোনো ঘটনা আছে কি না তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। পরে আরও বিস্তারিত জানা যাবে।’

রাজশাহী নগরীর একটি বাড়ির সেফটিক ট্যাংক থেকে এক ব্যক্তির গলা কাটা মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নগরীর দামকুড়া এলাকা থেকে বৃহস্পতিবার সকালে পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে নিহতের ছেলে ৩২ বছরের স্বপনকে আটক করা হয়েছে।

নিহতের নাম সাজ্জাদ হোসেন। তার বয়স ৬৫ বছর।

নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন দামকুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাহবুব আলম।

তিনি জানান, গত মঙ্গলবার রাত থেকে সাজ্জাদ হোসেন নিখোঁজ ছিলেন। এ ঘটনায় বুধবার তার ছেলে আব্দুল হাদী থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। জিডির সূত্র ধরে পুলিশ তার অন্য ছেলে স্বপনকে জিজ্ঞাসাবাদ করে।

স্বপনের আচরণ সন্দেহজনক ছিল। জিজ্ঞাসাবাদে তিনি একপর্যায়ে বাবাকে প্রথমে শ্বাসরোধ ও পরে গলা কেটে হত্যা করার কথা স্বীকার করেন। হত্যার পর মরদেহ বাড়ির সেফটিক ট্যাংকে ভরে রাখেন।

পুলিশ কর্মকর্তা আরও জানান, স্বপন পুলিশকে জানিয়েছেন, এক বছর আগে তার মা মারা যান। এরপর তার বাবা দ্বিতীয় বিয়ে করার কথা বলেন। কিন্তু দ্বিতীয় বিয়ে করলে সম্পত্তি ভাগ হয়ে যাবে- এমন চিন্তা থেকেই স্বপন তার বাবাকে হত্যা করেন।

ওসি মাহবুব বলেন, ‘এ হত্যার পেছনে আর কোনো ঘটনা আছে কি না তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। পরে আরও বিস্তারিত জানা যাবে।’

আরও পড়ুন:
নবীনগরের ১৩ ইউপিতে আ.লীগের ১৫ বিদ্রোহী
বরগুনায় নৌকার জয় উৎসবে হামলা,  আহত ৫ 
নির্বাচনি সহিংসতায় গুলিতে নিহত ‌১
মেঘনায় গোলাগুলিতে যুবলীগ নেতা নিহত
সাত ইউপিতে ভোট হচ্ছে না রোববার

শেয়ার করুন

শ্রীপুরে ট্রেন লাইনচ্যুত

শ্রীপুরে ট্রেন লাইনচ্যুত

গাজীপুরে ময়মনসিংহগামী মহুয়া এক্সপ্রেস ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

ঢাকা রেলওয়ে কন্ট্রোল রুমের কর্মকর্তা মো. মোখলেস জানান, রাজধানীর কমলাপুর থেকে মোহনগঞ্জের উদ্দেশে যাচ্ছিল মহুয়া এক্সপ্রেস ট্রেনটি। কাওরাইদ স্টেশনে পৌঁছানোর পর দুই নম্বর লাইনে ইঞ্জিনসহ পেছনের বগি লাইনচ্যুত হয়।

গাজীপুরে ময়মনসিংহগামী মহুয়া এক্সপ্রেস ট্রেন লাইনচ্যুত হয়েছে।

শ্রীপুরের কাওরাইদ রেলস্টেশনে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

আতঙ্কিত হয়ে ট্রেন থেকে তাড়াহুড়ো করে নামতে গিয়ে বেশ কয়েকজন যাত্রী আহত হয়েছেন।

ঢাকা রেলওয়ে কন্ট্রোল রুমের কর্মকর্তা মো. মোখলেস নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ঢাকার কমলাপুর থেকে মোহনগঞ্জের উদ্দেশে যাচ্ছিল মহুয়া এক্সপ্রেস ট্রেনটি। কাওরাইদ স্টেশনে পৌঁছানোর পর দুই নম্বর লাইনে ইঞ্জিনসহ পেছনের বগি লাইনচ্যুত হয়।

মো. মোখলেস জানান, এ ঘটনার পর ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ হয়নি। বিকল্প লাইনে ট্রেন গন্তব্যস্থলে যাচ্ছে।

আরও পড়ুন:
নবীনগরের ১৩ ইউপিতে আ.লীগের ১৫ বিদ্রোহী
বরগুনায় নৌকার জয় উৎসবে হামলা,  আহত ৫ 
নির্বাচনি সহিংসতায় গুলিতে নিহত ‌১
মেঘনায় গোলাগুলিতে যুবলীগ নেতা নিহত
সাত ইউপিতে ভোট হচ্ছে না রোববার

শেয়ার করুন

ছুরিকাঘাতে রোহিঙ্গা যুবক খুন, গ্রেপ্তার ২

ছুরিকাঘাতে রোহিঙ্গা যুবক খুন, গ্রেপ্তার ২

রোহিঙ্গা যুবককে খুনের ঘটনায় দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা

৮ এপিবিএনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কামরান হোসেন বলেন, রোহিঙ্গা যুবক খুনের ঘটনায় দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। হত্যা মামলার পর তাদের উখিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।’

কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা শিবিরে ছুরিকাঘাতে এক যুবকের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে দুজনকে গ্রেপ্তার করেছেন আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) সদস্যরা।

জামতলী ক্যাম্প-১৫-এর এইচ ব্লকে বুধবার রাত ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার ভোরে ওই দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

নিহত যুবকের নাম মৌলভী মনির হোসেন। তার বয়স ৩৫ বছর।

গ্রেপ্তার দুজন হলেন ৩৫ বছরের মোহাম্মদ ইউনুস ও ৪৪ বছরের মোহাম্মদ ইয়াসিন।

নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন ৮ এপিবিএনের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কামরান হোসেন। তিনি জানান, প্রতিবেশী কেফায়েত উল্লাহর সঙ্গে মনিরের দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। গত বুধবার ঝাড়ু দেয়াকে কেন্দ্র করে তাদের মধ্যে আবারও কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে কেফায়েত এবং তার সহকারী ইউনুস ও ইয়াসিন মনিরকে ধরে পেটে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান।

পরে রক্তাক্ত অবস্থায় মনিরকে উদ্ধার করে ক্যাম্পের এমএসএফ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

তিনি বলেন, ‘এ ঘটনায় দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। হত্যা মামলার পর তাদের উখিয়া থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
নবীনগরের ১৩ ইউপিতে আ.লীগের ১৫ বিদ্রোহী
বরগুনায় নৌকার জয় উৎসবে হামলা,  আহত ৫ 
নির্বাচনি সহিংসতায় গুলিতে নিহত ‌১
মেঘনায় গোলাগুলিতে যুবলীগ নেতা নিহত
সাত ইউপিতে ভোট হচ্ছে না রোববার

শেয়ার করুন