পাকিস্তানের প্রেতাত্মা এখনও দেশে সক্রিয়: বাংলাদেশ যুব মৈত্রী

পাকিস্তানের প্রেতাত্মা এখনও দেশে সক্রিয়: বাংলাদেশ যুব মৈত্রী

বাংলাদেশ যুব মৈত্রীর নেতারা বলেন, অনুশীলনের সময় ৩০ লাখ শহীদের দেশে পাকিস্তানের পতাকা পুঁতে রাখা মেনে নেয়া যায় না। ’৭১-এর ঘটনায় এখনও ক্ষমা চায়নি পাকিস্তান। লুট করা সম্পদও ফেরত দেয়নি তারা। মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত হলেও পাকিস্তানের প্রেতাত্মা এখনও এ দেশে সক্রিয়।

বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের মধ্যকার টি-টোয়েন্টি সিরিজের ম্যাচ চলাকালীন বাংলাদেশি কিছু দর্শকের পাকিস্তানের পতাকা ও জার্সি গায়ে সমর্থন দেয়াকে পরিকল্পিত ও রাজনৈতিক দুরভিসন্ধি বলছে বাংলাদেশ যুব মৈত্রী।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বুধবার বিকেল ৪টার দিকে আয়োজিত বিক্ষোভ সমাবেশে এ মন্তব্য করেন বাংলাদেশ যুব মৈত্রীর নেতারা।

তারা বলেন, অনুশীলনের সময় ৩০ লাখ শহীদের দেশে পাকিস্তানের পতাকা পুঁতে রাখা মেনে নেয়া যায় না। ’৭১-এর ঘটনায় এখনও ক্ষমা চায়নি পাকিস্তান। লুট করা সম্পদও ফেরত দেয়নি তারা। মুক্তিযুদ্ধে পরাজিত হলেও পাকিস্তানের প্রেতাত্মা এখনও এ দেশে সক্রিয়।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী এ ঘটনার দায় এড়াতে পারেন না উল্লেখ করে নেতারা বলেন, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। পাকিস্তানের হাইকমিশনারকে তলব করে প্রতিবাদ জানানো উচিত ছিল। কাউকে বিচারের আওতায়ও আনা হয়নি, যা অত্যন্ত দুঃখজনক।

সাব্বাহ আলী খান কলিন্সের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ যুব ইউনিয়নের সভাপতি হাফিজ আদনান রিয়াদ, জাতীয় যুব জোটের সভাপতি রোকনুজ্জামান রোকন, বাংলাদেশ যুব আন্দোলন সহসাধারণ সম্পাদক শাখাওয়াত হোসেন সৈকত, জাতীয় যুব ঐক্যের সভাপতি খায়রুল আলম, বাংলাদেশে যুব মৈত্রীর সহসভাপতি শফিকুল ইসলাম শফিক ও কায়সার আলম। সঞ্চালনা করেন যুব মৈত্রীর সহসাধারণ সম্পাদক তাপস দাস।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

‘শোষণ রোধে শ্রমিকদের অধিকার সচেতন হতে হবে’

‘শোষণ রোধে শ্রমিকদের অধিকার সচেতন হতে হবে’

মতবিনিময় সভায় বক্তব্য দেন অতিথিরা।

‘সারা পৃথিবীতেই বেশিরভাগ মালিকরা কোন না কোনভাবে শ্রমিকদের শোষণ করছে। শ্রমিকরাও নানা কারণে শোষিত হচ্ছেন। এই শোষণ শুধু আজ নয়, যুগযুগ ধরে চলছে। শোষণ নির্যাতন থেকে বাঁচতে শ্রমিকদেরকে অধিকার সচেতন হতে হবে।’

‘সারা বিশ্বে বেশিরভাগ মালিকরা কোন না কোনভাবে শ্রমিকদের শোষণ করে আসছে। শ্রমিকরাও নানা কারণে শোষিত হচ্ছেন। এই শোষণ শুধু আজ নয়, যুগযুগ ধরে চলছে। শোষণ নির্যাতনথেকে বাঁচতে শ্রমিকদেরকে অধিকার সচেতন হতে হবে।’

বাংলাদেশের সামুদ্রিক খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ শিল্পে নিয়োজিত শ্রমিকদের ক্ষমতায়ন ও মাঠের কাজের অভিজ্ঞতা বিষয়ক এক মতবিনিময় সভায় বক্তারা এসব কথা বলেন।

বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা কর্মজীবী নারীর আয়োজনে বাগেরহাটের ধানসিঁড়ি হোটেলে বুধবার দুপুরে সভা হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন বাগেরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোছাব্বেরুল ইসলাম।

সভায় এক বক্তা বলেন, শ্রমিকদের অক্লান্ত পরিশ্রমেই দেশের অর্থনীতির চাকা সচল থাকে। এই কারণেই বর্তমান সরকার শ্রমিকদের জন্য অনেক সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করেছে।

শ্রমিকদের অধিকার রক্ষায় সরকার আইনও করেছে। তবে এসব সুবিধা গ্রহণ ও অধিকার নিশ্চিত করতে শ্রমিকদেরকে অবশ্যই আইন-কানুন সম্পর্কে ধারণা রাখতে হবে। এ জন্য সবাইকে একযোগে কাজ করার আহ্বান জানান বক্তারা।

শেয়ার করুন

সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক এলিট

সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক এলিট

নিয়াজ মুর্শেদ এলিট বলেন, ‘কাউন্সিলরদের মতামতের ভিত্তিতে এ কমিটি গঠন করা হয়েছে। সড়ক পরিবহন ব্যবস্থাকে আধুনিকায়ণের পাশাপাশি জনকল্যাণমুখী করে গড়ে তোলাই আমাদের লক্ষ্য।’

বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন জুনিয়র চেম্বার ইন্টারন্যাশনালের (জেসিআই) সভাপতি নিয়াজ মুর্শেদ এলিট।

এলিট বর্তমানে কেন্দ্রীয় আওয়ামী যুবলীগের কার্যনিবাহী সদস্য। এর আগে তিনি কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপ কামিটির সদস্য ছিলেন।

গত ২৫ নভেম্বর রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটে সারা দেশ থেকে আসা প্রায় ৭০০ কাউন্সিলর ও ডেলিগেস্টসের উপস্থিতিতে কাউন্সিল অধিবেশন হয়েছে। এতে সভাপতি পদে সংসদ সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গা ও মহাসচিব পদে খন্দকার এনায়েত উল্যাহ নির্বাচিত হয়েছেন।

সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক নির্বাচনের পর সমিতির সংবিধান মোতাবেক আগামী দুই বছরের জন্য ১২১ সদস্যবিশিষ্ট কার্যকরী কমিটি গঠন করা হয়। এতে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পান এলিট।

এ ব্যাপারে নিয়াজ মুর্শেদ এলিট বলেন, ‘কাউন্সিলরদের মতামতের ভিত্তিতে এ কমিটি গঠন করা হয়েছে। সড়ক পরিবহন ব্যবস্থাকে আধুনিকায়ণের পাশাপাশি জনকল্যাণমুখী করে গড়ে তোলাই আমাদের লক্ষ্য।’

শেয়ার করুন

বরগুনা মুক্ত দিবস পালিত

বরগুনা মুক্ত দিবস পালিত

মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সত্তারের নেতৃত্বে ১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর ২১ জন মুক্তিযোদ্ধা বরগুনাকে হানাদার ও রাজাকার মুক্ত করেন। প্রতিবছর এই দিবস পালন করে বরগুনাবাসী।

নানা আয়োজনে বরগুনায় হানাদার মুক্ত দিবস পালিত হয়েছে।

মুক্তিযুদ্ধে বরগুনায় শহীদদের গণকবরে শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্য দিয়ে শুক্রবার সকালে এসব কর্মসূচি শুরু হয়।

গণকবরে শ্রদ্ধা জানান জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান, পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর মল্লিক, পৌর মেয়র কামরুল আহসান মহারাজসহ রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের সদস্যরা।

শিশু সংগঠন খেলাঘরের নেতৃত্বে বেলা ৩টায় আনন্দ শোভাযাত্রা, গণসংগীত, আবৃত্তি ও আলোচনা সভা হয়। সন্ধ্যায় মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের স্মরণে গণকবরে মোমবাতি প্রজ্বালন করা হয়।

মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সত্তারের নেতৃত্বে ১৯৭১ সালের ৩ ডিসেম্বর ২১ জন মুক্তিযোদ্ধা বরগুনাকে হানাদার ও রাজাকার মুক্ত করেন। প্রতিবছর এই দিবস পালন করে বরগুনাবাসী।

শেয়ার করুন

নেত্রকোণায় ধান ও সেদ্ধ চাল সংগ্রহ করছে সরকার

নেত্রকোণায় ধান ও সেদ্ধ চাল সংগ্রহ করছে সরকার

নেত্রকোণায় সরকারিভাবে আমন ধান ও সেদ্ধ চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

জেলা প্রশাসক কাজি আব্দুর রহমান বলেন, ‘স্বচ্ছতার সঙ্গে ধান-চাল কেনা হবে। কৃষককে সরকারের কাছে ধান বেচতে তাদের উৎসাহ দেয়া হচ্ছে।’

নেত্রকোণায় সরকারিভাবে আমন ধান ও সেদ্ধ চাল সংগ্রহ অভিযান শুরু হয়েছে।

জেলা খাদ্য বিভাগের উদ্যোগে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সদরের বারহাট্রা রোডে খাদ্যগুদামে সেদ্ধ চাল কেনা শুরু হয়।

এই সংগ্রহ অভিযানের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক কাজি আব্দুর রহমান।

জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক জাকারিয়া মোস্তফা জানান, চলতি আমন মৌসুমে ১৯ হাজার ৭৮৯ টন সেদ্ধ চাল কেনা হবে। আর কৃষকের কাছ থেকে ৭ হাজার ১২৫ টন ধান কেনা হবে। চাল কিনতে জেলার ২৪২টি চালকলের সঙ্গে চুক্তি করেছে খাদ্য বিভাগ।

এবার প্রতি কেজি আমন ধান ২৭ টাকা ও প্রতি কেজি আমন সেদ্ধ চাল ৪০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, দেশে আমন মৌসুমে সারা দেশে ৫ লাখ টন সেদ্ধ চাল ও ৩ লাখ টন ধান কিনবে সরকার।

জেলা প্রশাসক কাজি আব্দুর রহমান বলেন, ‘স্বচ্ছতার সঙ্গে ধান-চাল কেনা হবে। কৃষককে সরকারের কাছে ধান বেচতে তাদের উৎসাহ দেয়া হচ্ছে।’

এ সময় আরও উপস্থিত ছিলেন জেলা চালকল মালিক সমিতির সভাপতি এইচআর খান পাঠান সাকি, সাধারণ সম্পাদক উজ্জ্বল সাহাসহ অন্যরা।

শেয়ার করুন

নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে সংবাদ সম্মেলন

নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধে সংবাদ সম্মেলন

লিখিত বক্তব্যে মহিলা পরিষদ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সাথী চৌধুরী বলেন, ‘অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক, মানবিক সমাজ ও রাষ্ট্র গঠনের লক্ষ্য নিয়ে দেশ স্বাধীন হয়েছিল। গত পাঁচ দশকে আর্থসামাজিক উন্নয়নে নারীর উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রয়েছে। অথচ নারীর মানবাধিকার এখনও অর্জিত হয়নি।’

নারীর প্রতি সহিংসতা বন্ধ ও তাদের অধিকার নিশ্চিতের দাবিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সংবাদ সম্মেলন করেছে বাংলাদেশ মহিলা পরিষদ। শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত স্মৃতি পাঠাগারে শুক্রবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলন হয়।

গত দুই বছরে নারীর প্রতি দেশব্যাপী হওয়া সহিংসতার চিত্র তুলে ধরে লিখিত বক্তব্যে মহিলা পরিষদ ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক সাথী চৌধুরী বলেন, ‘অসাম্প্রদায়িক, গণতান্ত্রিক, মানবিক সমাজ ও রাষ্ট্র গঠনের লক্ষ্য নিয়ে দেশ স্বাধীন হয়েছিল। গত পাঁচ দশকে আর্থসামাজিক উন্নয়নে নারীর উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রয়েছে। অথচ নারীর মানবাধিকার এখনও অর্জিত হয়নি।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সভাপতি শোভা পাল, সহসভাপতি নিভা রায়, সাবেক সাধারণ সম্পাদক নেলী আক্তার, সাংগঠনিক সম্পাদক শামীমা সিকদার দীনা, অর্থ সম্পাদক আসমা খানম, লিগ্যাল এইড সম্পাদক লাকী সরকার ও আন্দোলন সম্পাদক শ্যামলী মিয়াজি।

শেয়ার করুন

অপারেশন থিয়েটার চালুর দাবিতে মানববন্ধন

অপারেশন থিয়েটার চালুর দাবিতে মানববন্ধন

ঝালকাঠির নলছিটিতে অপারেশন থিয়েটার চালুর দাবিতে মানববন্ধন ছবি: নিউজবাংলা

স্থানীয় তাইফুর রহমান তূর্য বলেন, নলছিটি উপজেলার দশ ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার মানুষ স্বাস্থ্যসেবায় নলছিটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের ওপর নির্ভর করেন। তবে এখানে অপারেশন থিয়েটার চালু হয়নি। এতে অনেকেই সেবা বঞ্চিত হচ্ছেন।

ঝালকাঠির নলছিটি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অপারেশন থিয়েটার (ওটি) চালুর দাবিতে মানববন্ধন করেছে সচেতন নাগরিক সমাজ।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে এই কর্মসূচি পালন করা হয়। এতে অংশ নেন নানা শ্রেণি পেশার মানুষ।

স্থানীয় তাইফুর রহমান তূর্য বলেন, নলছিটি উপজেলার দশ ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভার মানুষ স্বাস্থ্যসেবায় এই চিকিৎসাকেন্দ্রের ওপর নির্ভর করেন। তবে এখানে অপারেশন থিয়েটার চালু হয়নি। এতে অনেকেই সেবাবঞ্চিত হচ্ছেন।

এ ব্যাপারে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে বারবার জানানো হলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

শেয়ার করুন