বিএনপি বৈধভাবে বিক্ষোভ করতে পারে, তবে…

বিএনপি বৈধভাবে বিক্ষোভ করতে পারে, তবে…

‘তারা যদি ওই জায়গায় বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি করেন বা জান-মাল বিনষ্টের প্রচেষ্টা করেন তাহলে কিন্তু আইন শৃঙ্খলা বাহিনী যথাযথ ব্যবস্থা নেবে। আমি আবারও বলছি, তারা বৈধভাবে যে কোনো ডেমোনেস্ট্রেশন করতে পারেন সেখানে আমাদের পক্ষ থেকে কোনো কিছু বলার নেই।’

বিএনপি শান্তিপূর্ণভাবে কোনো আন্দোলন করলে সরকার বাঁধা দেবে না বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। সচিবালয়ে রোববার সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন। তবে আন্দোলনের নামে বিশৃঙ্খলা তৈরি হলে তা দমন করা হবে বলে ইঙ্গিত দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি দোয়া মাহফিল করতে পারেন, মানববন্ধন করতে পারেন। তারা রাজনৈতিক দল, কর্মসূচি দিতে পারেন। কিন্তু যদি মানুষের জানমাল রক্ষার জন্য সম্পদ রক্ষার জন্য আমাদের আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সব সময় প্রস্তুত থাকবে।

‘তারা যদি ওই জায়গায় বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টি করেন বা জান-মাল বিনষ্টের প্রচেষ্টা করেন তাহলে কিন্তু আইন শৃঙ্খলা বাহিনী যথাযথ ব্যবস্থা নেবে। আমি আবারও বলছি, তারা বৈধভাবে যে কোনো ডেমোনেস্ট্রেশন করতে পারেন সেখানে আমাদের পক্ষ থেকে কোনো কিছু বলার নেই।’

বিএনপি চেয়ারপারসনকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করানোর দাবিতে সারা দেশে গতকাল শনিবার গণঅনশন কর্মসূচি পালন করেছে দলটির নেতা-কর্মীরা। সেখান থেকে সোমবার সারা দেশে বিক্ষোভ কর্মসূচির ডাক দেয়া হয়।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় সাজার পর সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি গ্রেপ্তারের পর কারাগারে নেয়া হয়। সেখানে কারাবন্দি ছিলেন দুই বছর। গত বছরের ২৫ মার্চ তার পরিবারের আবেদনে এক নির্বাহী আদেশে সাজা স্থগিত করে সাময়িক মুক্তি দেয় সরকার।

এরপর তার মুক্তির মেয়াদ বাড়লেও বিদেশে যাওয়ার উপর নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়।

গত ১৩ নভেম্বর শারীরিক নানা জটিলতা নিয়ে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালের সিসিইউতে ভর্তি করা হয় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে।

সেখানে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার জন্য সম্প্রতি সরকারের কাছে আবারও আবেদন জানিয়েছেন তার ভাই শামীম ইস্কান্দার। একই আবেদন জানিয়ে রোববার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে দেখা করেছেন বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের ৫ শীর্ষ নেতা।

এরা হলেন বাংলাদেশ কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহিম, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি (এনপিপি) চেয়ারম্যান ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টির চেয়ারম্যান ক্বারী মোহাম্মদ আবু তাহের, বাংলাদেশ জাতীয় দলের চেয়ারম্যান সৈয়দ এহসানুল হুদা এবং লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির মহাসচিব শাহদাৎ হোসেন সেলিম।

আরও পড়ুন:
‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে সরকারকে দায় নিতে হবে’: রুমিন
রাজপথে থাকার শপথ করালেন ফখরুল
মাঠ বলে দেবে কখন কী করতে হবে: গয়েশ্বর
অনশন শেষে সারা দেশে বিক্ষোভের ডাক বিএনপির
বিএনপির অনশনে ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

শুনানিতে আটকে আছে রোকেয়া পরিবারের জমি উদ্ধার

শুনানিতে আটকে আছে রোকেয়া পরিবারের জমি উদ্ধার

বেগম রোকেয়ার বিশাল সম্পত্তির কিছুই এখন তার পরিবারের ভোগ দখলে নেই। ছবি: নিউজবাংলা

বেগম রোকেয়ার পৈত্রিক সম্পত্তি দীর্ঘদিন ধরে ভোগ-দখল করে আসছেন স্থানীয় অনেকে। অনেক জমির মালিকের নামও পরিবর্তন করা হয়েছে। রোকেয়া পরিবারের জমি উদ্ধারের চেষ্টা করলেও সফলতা আসেনি। ২০১২ সালে হাইকোর্টে রিট করা হলেও তার চূড়ান্ত শুনানি হয়নি ৯ বছর পরও।

বাঙালি মুসলিম নারী জাগরণের অগ্রদূত বেগম রোকেয়া তার প্রবন্ধ নার্স নেলী-তে লিখেছেন, আমাদের অবস্থা স্বচ্ছল ছিল-আমার পরম সুখে খাইয়া পরিয়া গা-ভরা গহনায় সাজিয়া থাকিতাম। আমাদের এ নিবিড় অরণ্যবেষ্টিত বাড়ির তুলনা কোথায়? সাড়ে তিন শ বিঘা লা-খেরাজ জমির মাঝখানে কেবল আমাদের এই সুবৃহৎ বাড়ি। বাড়ির চতুর্দ্দিকে ঘোর বন, তাহাতে বাঘ, শুকর, শৃগাল-সবই আছে।

রোকেয়া সাখাওয়াত হোসেন তার লেখায় এভাবেই নিজের পরিবারের সাড়ে তিন শ বিঘা সম্পত্তির বর্ণনা দিয়েছিলেন। তবে বিশাল সেই সম্পত্তির এখন কিছুই রোকেয়া পরিবারের ভোগ দখলে নেই।

দীর্ঘদিন ধরে তা স্থানীয় অনেকে ভোগ করে আসছেন। অনেক জমির মালিকের নামও পরিবর্তন করা হয়েছে। রোকেয়া পরিবারের জমি উদ্ধারের চেষ্টাও সফল হয়নি। ২০১২ সালে হাইকোর্টে রিট করা হলেও তার চূড়ান্ত শুনানি হয়নি ৯ বছর পরও।

এমন অবস্থায় বৃহস্পতিবার দেশজুড়ে উদযাপন করা হবে রোকেয়া দিবস। দিনটি উপলক্ষে বেগম রোকেয়ার পৈত্রিক সম্পত্তি উদ্ধারের দাবি জানিয়েছেন তার পরিবার, স্বজন ও অনুরাগীরা।

১৮৮০ সালের ৯ ডিসেম্বর রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলার পায়রাবন্দের খোর্দ্দ মুরাদপুর গ্রামে জন্ম বেগম রোকেয়ার। তার বাবার নাম জহীরুদ্দিন মোহাম্মদ আবু আলী হায়দার সাবের ও মা রাহাতুন্নেসা সাবেরা চৌধুরানী। বাঙালি মুসলিম নারী জাগরণের অগ্রদূত এবং প্রথম বাঙালি এ নারীবাদীর মৃত্যু হয় ১৯৩২ সালের ৯ ডিসেম্বর কোলকাতায়।

১৯৭৪ সাল থেকে পায়রাবন্দবাসী বেগম রোকেয়ার স্মরণে রোকেয়া দিবস পালন করে আসছেন। সরকারিভাবে ১৯৯৪ সাল থেকে জেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় বেশ ঘটা করেই দিবসটি পালন করা হয়। সারা দেশে দিনটি উদযাপন করা হয় রোকেয়া দিবস হিসেবে।

জানা যায়, বেগম রোকেয়ার বাবা জহির উদ্দিন আবু আলী হায়দার সাবের পায়রাবন্দের শেষ জমিদার ছিলেন। ১৯১৩ সালে তার মৃত্যু হয়। জনশ্রুতি অনুযায়ী, তার মৃত্যুর আগেই জমিদারি শেষ হয়েছিল।

জমিদার জহির উদ্দিনের মৃত্যুর পর তার জমিও ধীরে ধীরে দখলদার ও স্থানীয় প্রভাবশালীদের দখলে চলে যায়। এমনকি পারিবারিক কবরস্থানটিও এখন প্রভাবশালীদের দখলে। এ নিয়ে ক্ষোভ রয়েছে রোকেয়া পরিবার, স্বজন ও অনুরাগীদের।

রোকেয়া পরিবারের জমি উদ্ধারে উদ্যোগ নেয়া হয় ২০১২ সালে। ওই বছরের ২২ মার্চ ‘হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড পিস ফর বাংলাদেশ’ নামে একটি সংগঠনের হয়ে হাইকোর্টে একটি রিট করেন সুপ্রিম কোর্টের জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মনজিল মোর্শেদ। তাতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, সাংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব, রংপুর রেঞ্জের ডিআইজি, জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট ১৩ জনকে বিবাদি করা হয়।

৮ এপ্রিল ওই রিটের শুনানি শেষে হাইকোর্টের বিচারপতি মির্জা হুসাইন হায়দার ও বিচারপতি মোহাম্মদ খুরশিদ আলম সরকারের বেঞ্চ রোকেয়া পরিবারের জমি কোথায় কী অবস্থায় আছে তা জানাতে ৪ সপ্তাহের রুল জারি করে।

রুলের পর একই বছরের ২ মে পায়রাবন্দ ইউনিয়নের সহকারী ভূমি কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম প্রধান মিঠাপুকুর উপজেলা সহকারী কমিশনারের (ভূমি) কাছে বেগম রোকেয়ার পৈত্রিক সম্পত্তির বিবরণ দিয়ে প্রতিবেদন দেন।

সেই প্রতিবেদনে বেগম রোকেয়ার ওয়ারিশদের নামে সিএস রেকর্ড অনুযায়ী ২৪৮ সি.এস. খতিয়ানে ৯ দশমিক ৯৫ একর এবং ৭২ খতিয়ানে ৬ দশমিক ৬৫ একর জমিসহ মোট ১৬ দশমিক ৬০ একর জমির হিসাব দেয়া হয়। বাকি জমির কোনো হদিস দিতে পারেননি তিনি।

ভূমি কর্মকর্তা আমিনুল ১২ মে আরও একটি প্রতিবেদন জমা দেন। সেখানে ৬ দশমিক ৭৯ একর জমিতে বেগম রোকেয়ার নামে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, স্মৃতি কেন্দ্র, স্মৃতি স্তম্ভ, ডাক বাংলোসহ ৯টি প্রতিষ্ঠানের কথা জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বেগম রোকেয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ৫৪ শতক, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রে ১ একর, এক বিঘা জমিতে ডাকবাংলা, ৩০ শতকে স্মৃতিফলক, ৩ দশমিক ১৫ একরে স্মৃতি কেন্দ্র, বেগম রোকেয়া মেমোরিয়াল বালিকা উচ্চবিদ্যালয় ৬০ শতক, ৪২ শতক জমির ওপর বেগম রোকেয়া মেমোরিয়াল ডিগ্রি মহাবিদ্যালয়, নারী কল্যাণ সংস্থার নামে ৩৩ শতক, স্মৃতি স্তম্ভ ৪২ শতক, ৫৮ শতক জমিতে কুটিরশিল্প প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের হিসাব দেয়া হয়।

বেগম রোকেয়া স্মৃতি সংসদের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম দুলাল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রোকেয়ার বাবা মারা যাবার পর রোকেয়ার পরিবার ও স্বজনরা এই জায়গা-জমির প্রতি তাকায়নি। এই অবস্থায় সিএস (৪০ সালের রেকর্ড) এর সময় কিছু ভূমিদস্যু রোকেয়ার জমিগুলো নিজ নামে রেকর্ড করে নেয়। আজ পর্যন্ত তারা ভোগ দখল করে খাচ্ছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘তখন (৪০ সালের রেকর্ড) রোকেয়ার চার ভাই-বোন বেঁচে ছিলেন। আইন অনুযায়ী, তাদের নামে জমিগুলো রেকর্ড হবার কথা ছিল। কিন্তু হয়নি। এ ক্ষেত্রে তৎকালীন অসাধু কিছু ভূমি কর্মকর্তা জড়িত বলে আমরা মনে করি। এসব জমি উদ্ধারে একটি মামলা হয়েছে, কিন্তু অগ্রগতি নেই। কারণ সরকার পক্ষ চূড়ান্ত শুনানিতে এগিয়ে আসছে না।’

বেগম রোকেয়ার ভাইয়ের মেয়ে রণজিনা সাবের বলেন, ‘রোকেয়া পরিবারের ব্যক্তি মালিকানাধীন প্রায় সাড়ে তিন শ বিঘা জমি অন্যরা ভোগ দখল করে খাচ্ছে। বাজার, হাট, পুকুর, আবাদি জমি সবই রোকেয়ার।

‘এসব জমি উদ্ধারে কারও কোনো মাথাব্যথা নেই। এই জমিগুলো উদ্ধার করে সরকার সংরক্ষণ করতে পারে। আমরা মনে করি, সরকার চাইলে দ্রুত জমিগুলো উদ্ধার হবে।’

কামরুজ্জামান জাহাঙ্গীর চৌধুরী নামে স্থানীয় একজন বেগম রোকেয়ার কিছু জমিতে চাষ করেন বলে অভিযোগ রয়েছে।

তিনি অবশ্য বলেন, ‘জমিগুলো আমাদের দাদির নামে রেজিস্ট্রি। ৪০ ও ৬২ সালে তারই নামে রেকর্ড আছে। তাহলে জমি রোকেয়ার হইল কেমনে। এখনও মামলার কাগজ পাই নাই, পাইলে আমরাও আদালতে লড়ব।’

আতাউর রহমান লেলিন নামে আরেকজন বলেন, ‘মামলা হয়েছে কি না জানি না। এগুলো আমাদের পৈত্রিক সম্পত্তি।’

রংপুর জেলা প্রশাসক আসিব আহসান জানান, ‘বেগম রোকেয়ার যেসব সম্পত্তি রয়েছে তার মামলার কাগজ, ভুলভাবে রেকর্ড হওয়াসহ যে কথাগুলো আসছে সে বিষয়ে আমরা কাজ করছি। রোকেয়া দিবসে আমরা সে বিষয়টি সবাইকে জানাব। একই সঙ্গে আগামী রোকেয়া দিবসের আগে এসব বিষয়ে অগ্রগতি করতে পারব।’

সম্পত্তি উদ্ধারে রিট করা আইনজীবী মঞ্জিল মোরশেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বেগম রোকেয়ার যে সম্পত্তি আছে সেগুলো সংরক্ষণের জন্য আমরা একটা রিট করেছিলাম। কোর্টের একটা আদেশ ছিল, সে বিষয়ে তারা সময় চেয়ে আবেদন করেছিল। চূড়ান্ত শুনানি এখনও হয়নি। পেন্ডিং অবস্থায় আছে। গভমেন্ট এ বিষয়ে কোনো জবাব দেয়নি।’

আরও পড়ুন:
‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে সরকারকে দায় নিতে হবে’: রুমিন
রাজপথে থাকার শপথ করালেন ফখরুল
মাঠ বলে দেবে কখন কী করতে হবে: গয়েশ্বর
অনশন শেষে সারা দেশে বিক্ষোভের ডাক বিএনপির
বিএনপির অনশনে ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ

শেয়ার করুন

মুরাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে আওয়ামী লীগও

মুরাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেবে আওয়ামী লীগও

ক্ষমতাসীন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ বিষয়ে আমরা বিব্রত, লজ্জিত। এর বাইরে আর কী বলার আছে।’ আরেকজন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘এই ধরনের বক্তব্য কোনোভাবেই কাঙ্ক্ষিত নয়। যে অডিওগুলো এসেছে এগুলো যদি সত্যি হয়, বানানো না হয়, তাহলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য আমরা সুপারিশ করবে।’

মন্ত্রিসভা থেকে সরে যেতে হচ্ছে, এখানেই শেষ নয়, দল হিসেবেও মুরাদ হাসানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগ।

জামালপুর-৪ আসনের সংসদ সদস্য মুরাদের কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগে কোনো পদ নেই। তিনি তার নিজ জেলা জামালপুর শাখার স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যাবিষয়ক সম্পাদক।

আওয়ামী লীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে দলীয় ব্যবস্থা নিতে হলে জেলা কমিটি থেকে সুপারিশ আসতে হবে। এরপর কেন্দ্রীয় কমিটি ব্যবস্থা নেবে।

নিউজবাংলাকে ময়মনসিংহ বিভাগের দায়িত্বপ্রাপ্ত আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সফিউল আলম চৌধুরী নাদেল বলেন, ‘তার বিরুদ্ধে দলীয়ভাবে ব্যবস্থা নেয়ার জন্য এখনও দলীয় ফোরামে আলোচনা হয়নি। আলোচনা হবে, এর পর আমি আপনাকে বলতে পারব কী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

সম্প্রতি আওয়ামী লীগের দুই নেতার বক্তব্য ফেসবুকে প্রকাশ হলে ক্ষোভ বিক্ষোভের মধ্যে তারা স্থানীয় সরকার ও দলের পদ হারান। এরা হলেন গাজীপুরের জাহাঙ্গীর আলম ও রাজশাহীর কাটাখালীর আব্বাস হোসেন।

তবে মন্ত্রিত্ব হারালে আর দল কোনো ব্যবস্থা নিলে, এমনকি বহিষ্কার করলেও সংসদ সদস্য পদ যাবে না মুরাদের।

যুক্তরাষ্ট্রে গিয়ে ধর্ম সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য দেয়ার ঘটনায় আবদুল লতিফ সিদ্দিকীকে মন্ত্রিসভা থেকে অপসারণ ও দল থেকে বহিষ্কারের পর ২০১৫ সালের ১ সেপ্টেম্বরে তিনি নিজে সংসদ থেকে পদত্যাগ করেন।

মুরাদ প্রথমবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন ২০০৮ সালে। তবে তার আসন ২০১৪ সালে জাতীয় পার্টিকে ছেড়ে দেয়া হয়। পরেরবার নৌকা আবার প্রার্থী দেয় আর জিতে আসেন মুরাদ।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর মুরাদকে প্রথমে করা হয় স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী। রাজধানীর একটি অভিজাত হাসপাতালে একটি ঘটনায় তার দপ্তর বদল করে করা হয় তথ্য প্রতিমন্ত্রী। তবে মন্ত্রিসভা ও দলে তার অবস্থান বেশ সংহতই ছিল।

আওয়ামী লীগের গবেষণা শাখা সিআরআইএ এর সঙ্গে সম্পৃক্ত এই নেতা সম্প্রতি ৭২ এর সংবিধানে ফিরে গিয়ে রাষ্ট্রধর্ম বাতিলের দাবি তোলেন। তার এই দাবি সেক্যুলার রাজনীতিতে বিশ্বাসীদের মধ্যে জনপ্রিয়ও হয়।

তবে তিনি সম্প্রতি একটি অনলাইট টকশোতে এসে যে ভাষায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও তার নাতনি জাইমা রহমানকে আক্রমণ করেন, সেটিতে নিন্দার ঝড় উঠে। রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বীকে অশালীন ভাষায় ঘায়েল করার এই চেষ্টার পর প্রতিবাদ জানায় বিএনপি। নারী নেত্রীরাও এর সামলোচনা করেন। তিনি এই ধরনের বক্তব্য দিয়েও কীভাবে মন্ত্রিসভায় থাকেন, সেই প্রশ্ন তোলে বিভিন্ন নারীবাদী সংগঠন।

এর মধ্যে প্রতিমন্ত্রীর কাছে গণমাধ্যমকর্মীরা জানতে চান, তিনি দুঃখ প্রকাশ করবেন কি না। জবাবে মুরাদ বলেন, তিনি বক্তব্যে অটল আর রাজনৈতিক কর্মী হিসেবে সমালোচনাকে গা করছেন না।

এর মধ্যে ফেসবুকে একটি ফোন রেকর্ড ছড়িয়ে পড়ে, যাতে পুরুষ কণ্ঠের একজন মুরাদ হাসান বলে চিহ্নিত হন। তিনি একজন চিত্রনায়িকাকে তার কাছে যেতে বলেন। না গেলে গোয়েন্দা সংস্থা দিয়ে তুলে নেয়ার হুমকি দেন। আর সেই নায়িকাকে ধর্ষণ করার ইচ্ছাও পোষণ করেন।

এর আগে আরও একটি অনলাইন সাক্ষাৎকারে মুরাদ হাসান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের নেত্রীদেরকে নিয়েও করেন আপত্তিকর মন্তব্য। এসব ঘটনায় ঘরে বাইরে সব জায়গায় অবস্থান হারান তিনি।

এসব ঘটনায় সোমবার রাতে মুরাদকে প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। জানান, মঙ্গলবারের মধ্যেই তাকে পদত্যাগ করতে হবে।

এর মধ্যেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ একটি প্রতিবাদ সমাবেশ ও মিছিল করে মুরাদের শাস্তির দাবিতে। নেতারা বলেন, কেবল মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ নয়, মুরাদকে ক্ষমা চাইতে হবে, নইলে তিনি পার পাবেন না।

দিনভর আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাদের সঙ্গে কথা হয়েছে নিউজবাংলার। তারা সবাই বলেছেন, মুরাদ যা করেছেন, তাতে তারা বিব্রত, এটা লজ্জাজনক।

ক্ষমতাসীন দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ বিষয়ে আমরা বিব্রত, লজ্জিত। এর বাইরে আর কী বলার আছে।’

আরেকজন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘এই ধরনের বক্তব্য কোনোভাবেই কাঙ্ক্ষিত নয়। যে অডিওগুলো এসেছে এগুলো যদি সত্যি হয়, বানানো না হয়, তাহলে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়ার জন্য আমরা সুপারিশ করব।’

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম কামাল হোসেন বলেন, ‘এ বিষয়ে তো আমাদের দলের সাধারণ সম্পাদক মন্তব্য কথা বলেছেন। তার বক্তব্যই আমার বক্তব্য।’

মুরাদকে পদত্যাগ করতে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ জানানোর আগে সোমবার দুপুরে ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, মুরাদের বক্তব্যের সঙ্গে আওয়ামী লীগ বা সরকারের অবস্থানের কোনো সম্পর্ক নেই।

তিনি বলেন, ‘আমাদের দলের বা সরকারের কোনো বক্তব্য বা মন্তব্য এসব না। এই ধরনের বক্তব্য কেন সে দিল, অবশ্যই আমি বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করব।’

আরও পড়ুন:
‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে সরকারকে দায় নিতে হবে’: রুমিন
রাজপথে থাকার শপথ করালেন ফখরুল
মাঠ বলে দেবে কখন কী করতে হবে: গয়েশ্বর
অনশন শেষে সারা দেশে বিক্ষোভের ডাক বিএনপির
বিএনপির অনশনে ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ

শেয়ার করুন

তামাক আইন সংশোধন করে শিগগির সংসদে আনব: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

তামাক আইন সংশোধন করে শিগগির সংসদে আনব: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

জাতীয় সংসদের শপথকক্ষে সোমবার বিকেলে ‘২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন' শিরোনামে সেমিনারে বক্তব্য দেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। ছবি: নিউজবাংলা

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘অনেকের মতে তামাক সংশ্লিষ্টরা অনেক শক্তিশালী। তবে তারা সরকারের চেয়ে শক্তিশালী নয়। এরই মধ্যে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে আমরা তামাকের ব্যবহার অনেকটা কমিয়ে আনতে পেরেছি। আরও কমাতে হবে। আমরা খুব দ্রুত আপনাদের প্রস্তাবনা অনুযায়ী আইনটি সংশোধন করে সংসদে আনব। সংসদ সদস্যদের মাধ্যমেই তা পাস হবে।’

প্রধানমন্ত্রী ঘোষিত ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে বিদ্যমান তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন করে শিগগিরই সংসদে উপস্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

জাতীয় সংসদের শপথকক্ষে সোমবার বিকেলে বাংলাদেশ পার্লামেন্টারি ফোরাম ফর হেলথ অ্যান্ড ওয়েলবিং আয়োজিত ‘২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে তামাক নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন' শিরোনামে জাতীয় সেমিনারে তিনি এ কথা জানান।

সংসদ সদস্য ডা. হাবিবে মিল্লাতের সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হক, ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, অ্যাডভোকেট পীর ফজলুর রহমান ও জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেলের পরিচালক কাজী জেবুন্নেছা বেগম।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ পড়েন ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়নে সবাইকে কাজ করতে হবে। তামাক থেকে আমরা যে রেভিনিউ পাই তার চেয়েও অনেক বেশি ব্যয় হয় চিকিৎসা খাতে। তাই তামাক মুক্তির কোনো বিকল্প নেই। তবে এক দিনে এগুলো বন্ধ করার উপায় নেই।

‘অনেকের মতে তামাক সংশ্লিষ্টরা অনেক শক্তিশালী। তবে তারা সরকারের চেয়ে শক্তিশালী নয়। এরই মধ্যে বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে আমরা তামাকের ব্যবহার অনেকটা কমিয়ে আনতে পেরেছি। আরও কমাতে হবে। আমরা খুব দ্রুত আপনাদের প্রস্তাবনা অনুযায়ী আইনটি সংশোধন করে সংসদে আনব। সংসদ সদস্যদের মাধ্যমেই তা পাস হবে।’

দেশকে তামাকমুক্ত করতে সেমিনারে পার্লামেন্টারি ফোরামের পক্ষ থেকে ৭টি প্রস্তাবনা দেয়া হয়।

এর মধ্যে রয়েছে, পাবলিক প্লেস, পাবলিক ট্রান্সপোর্টসহ ধূমপানের জন্য সব নির্ধারিত স্থান বিলুপ্ত, বিক্রয়স্থলেও তামাকজাত পণ্য প্রদর্শন বন্ধ, তামাক কোম্পানির সব স্পন্সরশিপ ও করপোরেট সামাজিক দায়বদ্ধতা কার্যক্রম নিষিদ্ধ, তামাকজাত পণ্যের মোড়কে সচিত্র স্বাস্থ্য সতর্কবার্তার আকার ৯০ শতাংশের বেশি রাখা, খুচরা ও কম সংখ্যক সিগারেট বা বিড়ি বিক্রি বন্ধ করা, ই-সিগারেটসহ সব ধরনের হিটেড ট্যোবাকো বিক্রি ও আমদানি বন্ধ এবং ১৯৫৬ সালের নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইন সংশোধন করে তামাক পণ্যকে তালিকা থেকে বাদ দেয়া।

আরও পড়ুন:
‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে সরকারকে দায় নিতে হবে’: রুমিন
রাজপথে থাকার শপথ করালেন ফখরুল
মাঠ বলে দেবে কখন কী করতে হবে: গয়েশ্বর
অনশন শেষে সারা দেশে বিক্ষোভের ডাক বিএনপির
বিএনপির অনশনে ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ

শেয়ার করুন

আড়াইহাজারে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ: দগ্ধ ১ জনের মৃত্যু

আড়াইহাজারে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণ: দগ্ধ ১ জনের মৃত্যু

সোলাইমানের শ্যালক মানসুর আহমেদ নিউজবাংলাকে জানান, ফজরের নামাজ পড়তে অজু করার জন্য গরম পানি করতে গিয়েছিলেন সোলাইমান। ওই সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ঘরে আগুন ধরে যায়।

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে বাসায় গ্যাস সিলিন্ডারের লিকেজ থেকে বিস্ফোরণে দগ্ধ একজনের মৃত্যু হয়েছে।

রাজধানীর শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে তার মৃত্যু হয়। মৃত সোলাইমানের শরীরের ৯৫ শতাংশ পুড়ে গিয়েছিল।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) বাচ্চু মিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

আড়াইহাজারে ধুপতারা ইউনিয়নের কুমারপাড়া গ্রামের একটি বাসায় সোমবার ভোরে বিস্ফোরণের ওই ঘটনা ঘটে। এতে দুই শিশুসহ সোলাইমানের পরিবারের চারজন দগ্ধ হয়।

সোলাইমান ছাড়া দগ্ধ তিনজন হলো তার স্ত্রী রীমা আক্তার এবং তাদের দুই সন্তান মাহিত ও আরোজ।

শেখ হাসিনা জাতীয় বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের চিকিৎসক এস এম আইউব হোসেন নিউজবাংলাকে জানিয়েছিলেন, সোলাইমানের শরীরের ৯৫ শতাংশ, রিমার ১৫ শতাংশ, মাহিতের ১৬ শতাংশ ও আরোজের শরীরের ৫ শতাংশ পুড়ে গেছে।

তাদের মধ্যে ৩ জনকে ভর্তি করা হয়। আর শিশু আরোজকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হয়।

সোলাইমানের শ্যালক মানসুর আহমেদ নিউজবাংলাকে জানান, ফজরের নামাজ পড়তে অজু করার জন্য গরম পানি করতে গিয়েছিলেন সোলাইমান। ওই সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ঘরে আগুন ধরে যায়।

মানসুর বলেন, মনে হয় সিলিন্ডারের পাইপ লিকেজ ছিল। তাই রুমে গ্যাস জমে ছিল।

এই ঘটনার এক দিন আগে নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় একটি ছয়তলা ভবনে সিলিন্ডার থেকে বের হওয়া গ্যাস বিস্ফোরণের পর আগুন লেগে চারজন দগ্ধ হন।

ফতুল্লার বিলাসনগর এলাকায় শনিবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে ওই ঘটনা ঘটে।

আরও পড়ুন:
‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে সরকারকে দায় নিতে হবে’: রুমিন
রাজপথে থাকার শপথ করালেন ফখরুল
মাঠ বলে দেবে কখন কী করতে হবে: গয়েশ্বর
অনশন শেষে সারা দেশে বিক্ষোভের ডাক বিএনপির
বিএনপির অনশনে ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ

শেয়ার করুন

মুরাদের বিচার চেয়েছে ছাত্র অধিকার পরিষদ

মুরাদের বিচার চেয়েছে ছাত্র অধিকার পরিষদ

সোমবার রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে প্রতিমন্ত্রী মুরাদের কুশপুতুল দাহ করে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ। ছবি: নিউজবাংলা

বিন ইয়ামিন মোল্লা বলেন, ‘প্রতিমন্ত্রী মুরাদকে অনেকে অনেকে বলে থাকেন পাগল। কিন্তু তিনি পাগল বা উন্মাদ নন। তিনি জাতে মাতাল তালে ঠিক। ধর্ম নিয়ে শুরু করে তিনি নারী সম্পর্কে ধারাবাহিকভাবে কুরুচিকর বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন। ছাত্র অধিকার পরিষদ এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে।’

নারীর প্রতি ‘অবমাননাকর’ ও ‘বর্ণবাদী’ মন্তব্য করায় তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসানের কুশপুতুল দাহ করেছে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ। একই সঙ্গে তারা মুরাদ হাসানকে বিচারের আওতায় আনার দাবি জানিয়েছে।

সোমবার রাত সাড়ে ৯টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে এই কুশপুতুল পোড়ানো হয়।

এর আগে প্রতিমন্ত্রী মুরাদের কুশপুতুল নিয়ে জুতা মিছিল করেন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকা থেকে শুরু হয়ে শামসুন নাহার হলের পাশ দিয়ে রাজু ভাস্কর্যে এসে শেষ হয়।

মিছিল শেষে মুরাদের কুশপুতুলে জুতা ছুড়ে মারেন সংগঠনটির নেতাকর্মীরা। এ সময় তারা ‘মুরাদের চামড়া, তুলে নিব আমরা’, ‘মুরাদের দুই গালে, জুতা মারো তালে তালে’, ‘ম তে মুরাদ, তুই ধর্ষক তুই ধর্ষক’ ইত্যাদি স্লোগান দেন।

ছাত্র অধিকার পরিষদ সভাপতি বিন ইয়ামিন মোল্লা ও সাধারণ সম্পাদক আরিফুল ইসলাম আদীবের নেতৃত্বে এতে অংশ নেন পরিষদের কেন্দ্রীয় ও ঢাবি শাখার অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী।

বিন ইয়ামিন মোল্লা বলেন, 'প্রতিমন্ত্রী মুরাদকে অনেকে অনেকে বলে থাকেন পাগল। কিন্তু তিনি পাগল বা উন্মাদ নন। তিনি জাতে মাতাল তালে ঠিক। ধর্ম নিয়ে শুরু করে তিনি নারী সম্পর্কে ধারাবাহিকভাবে কুরুচিকর বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন। ছাত্র অধিকার পরিষদ এর তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে।'

প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি এই লাগামহীন বলদকে শাস্তির আওতায় নিয়ে আসুন। অন্যথায় আমরা ছাত্র সমাজের প্রতি আহ্বান জানাব- আপনারা তাকে (মুরাদ হাসান) যেখানে পাবেন সেখানে গণধোলাই দেবেন।’

ঢাবি ছাত্র অধিকার পরিষদের নাট্য ও বিতর্ক বিষয়ক সম্পাদক নুসরাত তাবাসসুম বলেন, ‘আমরা দেখেছি দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপিঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নারী শিক্ষার্থীদের নিয়ে তার কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য। এটা শুধু ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় নয়, বাংলাদেশের সব মেয়ের জন্য অপমানজনক।

‘এখন কেন ডিজিটাল আইনের প্রয়োগ দেখি না। কেন তথ্য প্রতিমন্ত্রীর বিচার হবে না। তাকে বিচারের আওতায় আনা না হলে আমরা নারী শিক্ষার্থীরা সারা দেশে আন্দোলন শুরু করব।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদকে পদত্যাগ করতে বলেছেন জানালে ছাত্র অধিকার পরিষদ ঢাবি শাখার দফতর সম্পাদক সালেহ উদ্দিন সিফাত বলেন, ‘তাকে অপসারণ করলেই হবে না। তিনি যে মন্তব্য করেছেন তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ। তাকে অবশ্যই শাস্তির আওতায় আনতে হবে।’

আরও পড়ুন:
‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে সরকারকে দায় নিতে হবে’: রুমিন
রাজপথে থাকার শপথ করালেন ফখরুল
মাঠ বলে দেবে কখন কী করতে হবে: গয়েশ্বর
অনশন শেষে সারা দেশে বিক্ষোভের ডাক বিএনপির
বিএনপির অনশনে ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ

শেয়ার করুন

আর্থসামাজিক সূচকে পাকিস্তানকে ছাড়িয়ে বাংলাদেশ: রেহমান সোবহান

আর্থসামাজিক সূচকে পাকিস্তানকে ছাড়িয়ে বাংলাদেশ: রেহমান সোবহান

বিজয় দিবসে জাতীয় সংসদ ভবনে আলোকসজ্জা। ফাইল ছবি

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক রেহমান সোবহান বলেন, ‘স্বাধীনতার সময় ১৯৭২ সালে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, দারিদ্য, মাথাপিছু আয়সহ অনেক সূচকে আমরা পাকিস্তানের তুলনায় পিছিয়ে ছিলাম। পরবর্তী ৫০ বছরে সেই অবস্থান থেকে অনেক এগিয়েছে বাংলাদেশ। এ ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে গত ২৫ বছরে। তবে লক্ষণীয় অগ্রগতি হয়েছে গত দশকে।’

মাথাপিছু জাতীয় আয়, গড় আয়ু, জিডিপির প্রবৃদ্ধিসহ আর্থসামাজিক অনেক সূচকে পাকিস্তানের তুলনায় বাংলাদেশ অনেক এগিয়েছে। অথচ স্বাধীনতার সময় এসব ক্ষেত্রে বাংলাদেশ অনেক পিছিয়ে ছিল।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক রেহমান সোবহান আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে এই সম্মেলনের আয়োজন করে সিপিডি। চার দিনব্যাপী ভার্চুয়ালি এ সম্মেলন সোমবার শুরু হয়েছে।

‘৫০ বছরে বাংলাদেশ: প্রত্যাবর্তন ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন প্রবীণ এই অর্থনীতিবিদ।

অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন অধ্যাপক রওনক জাহান। এতে স্বাগত বক্তব্য দেন সিপিডির নির্বাহী পরিচালক ড. ফাহমিদা খাতুন।

রেহমান সোবহান বলেন, ‘স্বাধীনতার সময় ১৯৭২ সালে শিক্ষা, স্বাস্থ্য, দারিদ্য, মাথাপিছু আয়সহ অনেক সূচকে আমরা পাকিস্তানের তুলনায় পিছিয়ে ছিলাম।

‘পরবর্তী ৫০ বছরে সেই অবস্থান থেকে অনেক এগিয়েছে বাংলাদেশ। এ ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে গত ২৫ বছরে। তবে লক্ষণীয় অগ্রগতি হয়েছে গত দশকে।’

১৯৭২ সালে বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় পাকিস্তানের চেয়ে ৬১ শতাংশ কম ছিল। জিডিপির উচ্চ প্রবৃদ্ধির কারণে মাথাপিছু আয় বাড়তে থাকে এবং ২০২০ সালে পাকিস্তানকে পেছনে ফেলে ৬২ শতাংশ বেশি হয়েছে মাথাপিছু আয়।

শুধু তা নয়, এই সময়ে সঞ্চয়, বিনিয়োগ এবং রপ্তানির ক্ষেত্রে পাকিস্তানকে টপকে বাংলাদেশ এগিয়ে আছে। এর ফলে বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ পাকিস্তানের চেয়ে দ্বিগুণ হয়েছে।

রেহমান সোবহান বলেন, ‘বাংলাদেশ এখন আর বৈদেশিক সাহায্যনির্ভর দেশ নয়। যে পরিমাণ বিদেশি ঋণ আমরা পাচ্ছি, তা জিডিপির ২ শতাংশ। অথচ পাকিস্তান এখনও বিদেশি সহায়তার ওপর নির্ভরশীল।’

বাংলাদেশের অবকাঠামো খাতও পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে বলে জানান রেহমান সোবহান।

বলেন, ‘১৯৭২ সালে আমরা বিদ্যুৎ উৎপাদনে পিছিয়ে ছিলাম। দ্রুত বিদ্যুৎ খাতের প্রসার ঘটায় গত ১০ বছরে পাকিস্তানের চেয়ে দ্বিগুণ উৎপাদন বেড়েছে।

মানবসম্পদ উন্নয়ন সূচকে ১৯৯০ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ পিছিয়ে ছিল। বর্তমানে এ ক্ষেত্রে পাকিস্তানকে পেছনে ফেলেছে বাংলাদেশ। জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণেও পাকিস্তানের তুলনায় বাংলাদেশ এগিয়ে আছে। স্বাস্থ্যসেবা উন্নীতির ফলে আমাদের গড় আয়ু ও পাকিস্তানের তুলনায় ভালো অবস্থানে আছে বলে জানান রেহমান সোবহান।

আরও পড়ুন:
‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে সরকারকে দায় নিতে হবে’: রুমিন
রাজপথে থাকার শপথ করালেন ফখরুল
মাঠ বলে দেবে কখন কী করতে হবে: গয়েশ্বর
অনশন শেষে সারা দেশে বিক্ষোভের ডাক বিএনপির
বিএনপির অনশনে ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ

শেয়ার করুন

সাভারে সড়ক-মহাসড়কে হাঁটু পানি, যানজট

সাভারে সড়ক-মহাসড়কে হাঁটু পানি, যানজট

টানা বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে সাভারের সড়ক-মহাসড়ক। ছবি: নিউজবাংলা

সাভার বাজারে মো. মিলন নামের স্থানীয় একজন বলেন, ‘আমি শিমুলতলা যাচ্ছিলাম। পুরো সড়কে পানি জমে যাওয়ায় আমার সাইকেল তলিয়ে গেছে। প্যান্ট গুঁজেও লাভ হয়নি, সব ভিজে গেছে। এই জায়গাটায় একটু বৃষ্টি হলেই পানি জমে। অথচ কিছুদিন আগে সড়কে সুয়ারেজ লাইন তৈরি করা হয়েছে, সেই লাইন কোনো কাজে আসছে না। টানা বৃষ্টিতে মহাসড়কেই হাঁটু পানি হয়ে গেছে৷ বাস-ট্রাক গেলে বিশাল ঢেউ হয়। এতে পথচারীরা পুরো ভিজে যায়।’

ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদের প্রভাবে টানা বৃষ্টিতে তলিয়ে গেছে সাভারের সড়ক-মহাসড়ক। হাঁটু পানিতে ভোগান্তিতে পড়েছেন শিল্পাঞ্চলের শ্রমিকসহ স্থানীয়রা।

সোমবার সকাল থেকে সারা দিন ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক এবং টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কে জলাবদ্ধতায় দুর্ভোগ পোহাতে হয়।

টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কে রাত সাড়ে ১১টার দিকেও জলাবদ্ধতার কারণে যানজট লেগে ছিল।

বৃষ্টির পানিতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের সাভার বাসস্ট্যান্ড থেকে রেডিও কলোনি পর্যন্ত আরিচামুখী লেনে হাটুঁ পরিমাণ পানি জমে আছে। যানবাহন চলছে ধীরগতিতে। এতে সড়কের পাশ দিয়ে চলাচলেও চরম দুর্ভোগে পড়েন পথচারীরা।

অন্যদিকে টঙ্গী-আশুলিয়া-ইপিজেড সড়কের ইউনিক বাসস্ট্যান্ড থেকে জামগড়া পর্যন্ত সড়কের বিভিন্ন স্থানে পানি জমেছে। সড়কে আগে থেকেই খানাখন্দ থাকায় দিনভর যানবাহন চলাচলে ছিল ধীরগতি।

সাভার বাজারে মো. মিলন নামের স্থানীয় একজন বলেন, ‘আমি শিমুলতলা যাচ্ছিলাম। পুরো সড়কে পানি জমে যাওয়ায় আমার সাইকেল তলিয়ে গেছে। প্যান্ট গুঁজেও লাভ হয়নি, সব ভিজে গেছে।

‘এই জায়গাটায় একটু বৃষ্টি হলেই পানি জমে। অথচ কিছুদিন আগে সড়কে সুয়ারেজ লাইন তৈরি করা হয়েছে, সেই লাইন কোনো কাজে আসছে না। টানা বৃষ্টিতে মহাসড়কেই হাঁটু পানি হয়ে গেছে৷ বাস-ট্রাক গেলে বিশাল ঢেউ হয়। এতে পথচারীরা পুরো ভিজে যায়।’

জামগড়া এলাকার পোশাক শ্রমিক রোকেয়া বেগম বলেন, ‘সকালে অফিসে গেলাম হালকা পানি পাড়িয়ে। দুপুরে খাবারের সময় এসে দেখি অনেক পানি। ড্রেনের ময়লা পানিও রাস্তায় এসে পড়েছে।’

সৌরভ পরিবহনের বাসচালক ইসতিয়াক হোসেন বলেন, ‘রাস্তাটা এমনিতে ভাঙা। তার মধ্যে দুই দিন থেকে টানা বৃষ্টি। এতে রাস্তার বিভিন্ন স্থানে বড়বড় গর্ত তৈরি হইছে। গাড়ি খুব সাবধানে চালাইতে হইতেছে।’

আরও পড়ুন:
‘খালেদা জিয়ার কিছু হলে সরকারকে দায় নিতে হবে’: রুমিন
রাজপথে থাকার শপথ করালেন ফখরুল
মাঠ বলে দেবে কখন কী করতে হবে: গয়েশ্বর
অনশন শেষে সারা দেশে বিক্ষোভের ডাক বিএনপির
বিএনপির অনশনে ছাত্রলীগের হামলার অভিযোগ

শেয়ার করুন