নির্বাচনে রক্তাক্ত নরসিংদী, ১৫ দিনে ১০ মৃত্যু

নির্বাচনে রক্তাক্ত নরসিংদী, ১৫ দিনে ১০ মৃত্যু

স্থানীয়রা জানান, নরসিংদী সদর উপজেলার চরাঞ্চল চারটি। এর মধ্যে আলোকবালী, চরদীঘলদী ও করিমপুরে সবচেয়ে বেশি সহিংসতার ঘটনা ঘটে। রায়পুরার চরাঞ্চলেও নিয়মিত সংঘর্ষ হয়। এখানে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে আগে থেকেই একাধিক পক্ষ রয়েছে, নির্বাচনে রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব তাতে নতুন মাত্রা দিয়েছে।

নরসিংদীতে সহিংসতা ও প্রাণহানির মধ্য দিয়ে শেষ হয়েছে দ্বিতীয় ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন। প্রচার ও ভোটের দিনের সহিংসতায় তিন ইউপিতে এখানে মাত্র ১৫ দিনে প্রাণ হারিয়েছেন ১০ জন। পুলিশসহ আহত হয়েছে শতাধিক মানুষ।

স্থানীয়রা বলছেন, নরসিংদীর চরাঞ্চলগুলোতে আগে থেকেই সংঘর্ষ হয়ে আসছে। তুচ্ছ ঘটনায়ও এখানকার বাসিন্দারা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন। নির্বাচন সেই দ্বন্দ্বকে আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।

তাদের অভিযোগ, এখানে দীর্ঘদিন ধরে চলে আসা সংঘর্ষ থামাতে রাজনৈতিক দলের নেতারা কখনও পদক্ষেপ নেননি, বরং তারা এটিকে ব্যবহার করে আসছেন। এ কারণে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আধিপত্য বজায় রাখা ও প্রতিপক্ষকে দমাতে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে মেতে উঠেছিলেন গ্রামপতিরা।

দেশে দ্বিতীয় দফায় ইউপি নির্বাচনে নরসিংদী সদর উপজেলার দুটি এবং রায়পুরার ১০টিতে ভোট হয় ১১ নভেম্বর। নির্বাচনকে ঘিরে এখানে বিভিন্ন বিবাদী দল সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত ১০ জন হলেন বাঁশগাড়ি গ্রামের সালাউদ্দিন মিয়া, দুলাল মিয়া ও জাহাঙ্গীর; কাচারিকান্দি এলাকার সাদিব মিয়া ও হিরণ মিয়া; নেকজানপুর গ্রামের আমির হোসেন ও একই গ্রামের আশরাফুল, খুশি বেগম এবং অজ্ঞাতপরিচয় একজন।

স্থানীয়রা জানান, নরসিংদী সদর উপজেলার চরাঞ্চল চারটি। এর মধ্যে আলোকবালী, চরদীঘলদী ও করিমপুরে সবচেয়ে বেশি সহিংসতার ঘটনা ঘটে। রায়পুরার চরাঞ্চলেও নিয়মিত সংঘর্ষ হয়। এখানে আধিপত্য বিস্তার নিয়ে আগে থেকেই একাধিক পক্ষ রয়েছে, নির্বাচনে রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব তাতে নতুন মাত্রা দিয়েছে।

নির্বাচনে রক্তাক্ত নরসিংদী, ১৫ দিনে ১০ মৃত্যু

জেলায় নির্বাচনি সহিংসতার শুরু রায়পুরার পাড়াতলী ইউনিয়ন থেকে। ২৮ অক্টোবর এখানে দুই পক্ষের সংঘর্ষে তিনজন নিহত হন।

স্থানীয়রা জানান, ইউনিয়নের কাচারিকান্দি এলাকার ইউপি সদস্য শাহ আলম এবং একই গ্রামের ছোট শাহ আলমের মধ্যে আগে থেকেই দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। এর জেরে ছয় মাস এই দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ছোট শাহ আলমের পক্ষের দুজন নিহত হন। ওই ঘটনায় ইউপি সদস্য শাহ আলমের পক্ষের সদস্যরা গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে যান। ইউপি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর সেই পক্ষ গ্রামে ঢোকার চেষ্টা করে।

২৮ অক্টোবর তারা শাহ আলম মেম্বারের সদস্যরা টেঁটা, বল্লম ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে গ্রামে ঢুকে ছোট শাহ আলমের বাড়িতে হামলা চালান। পরে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে ছোট শাহ আলম গ্রুপের সাদির ও হিরন ঘটনাস্থলেই নিহত হন। ঘটনার পাঁচ দিন পর আহত সুলমান মিয়া নামে আরও একজনের মৃত্যু হয়।

ওই ঘটনার পর সাব মিয়া নামে একজনকে দুটি পাইপগান ও ৩টি রাবার বুলেটসহ গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

৪ নভেম্বর সংঘর্ষ হয় আলোকবালী ইউনিয়নে। পুলিশ জানায়, আলোকবালীর চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন দীপু ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লাহর মধ্যে আগে থেকেই দ্বন্দ্ব চলে আসছিল। কিছুদিন আগে তাদের সমর্থকদের মধ্যে সংষর্ষও হয়।

আলোকবালী ইউপি নির্বাচনে ফের আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পান বর্তমান চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন দীপু। দলীয় মনোনয়ন না পেলেও স্বতন্ত্র হিসেবে নির্বাচন করার ঘোষণা দেন আসাদুল্লাহ আসাদ। পরে অবশ্য নেতা-কর্মীদের চাপে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেন।

তবে এ নিয়ে আসাদুল্লাহ সমর্থক মেম্বার প্রার্থী রিপন মোল্লা ও দীপু সমর্থক মেম্বার প্রার্থী আবু খায়ের মধ্যে উত্তেজনা চলছিল। এর জেরে রিপন মোল্লার সমর্থকরা ৪ নভেম্বর সকালে টেঁটা, বল্লম ও অস্ত্র নিয়ে নেকজানপুর গ্রামে আবু খায়ের সমর্থকদের ওপর হামলা চালান। পরে উভয় পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই তিনজন নিহত হন। ঢাকায় নেয়ার পথে আরও একজনের মৃত্যু হয়।

রায়পুরার দুর্গম চরাঞ্চল বাঁশগাড়ি ইউপিতে ভোটের আগের রাতে সংঘর্ষে জড়ায় নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী আশরাফুল হক ও বিদ্রোহী প্রার্থী রাতুল হাসান জাকিরের পক্ষ। আতঙ্ক সৃষ্টি, আধিপত্য বিস্তার ও মাঠ দখল করতে দুই প্রার্থীর সমর্থকরা রাত ৩টার দিকে সংঘর্ষে জড়ান।

বর্তমান চেয়ারম্যান আশরাফুলের সমর্থকরা স্বতন্ত্র প্রার্থী জাকিরের বাড়িতে হামলা চালালে সংঘর্ষ শুরু হয়। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে তিনজন প্রাণ হারান। আহত হন কমপক্ষে ২০ জন। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

বাঁশগাড়িতে নিহত সালাউদ্দিনের স্ত্রী আঁখি বেগম জানান, তার স্বামী ঢাকার গাজীপুর এলাকায় সিএনজিচালিত অটোরিকশা চালাতেন। ভোট দেয়ার জন্য তিনি বাড়িতে যান। নৌকার প্রার্থীর লোকজন তাদের বাড়িতে গিয়ে সালাউদ্দিনকে গুলি করে হত্যা করেন।

নিহত জাহাঙ্গীরের বোন ফুলমালা জানান, তার ভাই মালয়েশিয়াপ্রবাসী। ছয় মাস আগে দেশে ফিরে এলাকায় ব্যবসা শুরু করেন। ভোটের দিন সকালে কেন্দ্র দখল করে নৌকা প্রার্থীর লোকজন জাল ভোট দিচ্ছে- এমন তথ্য পেয়ে বের হওয়ার পর নৌকার প্রার্থী আমির হোসেনের পক্ষের গুলিতে তিনি নিহত হন।

ভোটের দিন চসুবুদ্ধি ইউনিয়নেও সংঘর্ষ হয়েছে। এ কারণে মহিষবের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোট স্থগিত করা হয়।

বেলা সাড়ে ১১টার দিকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী মো. নাসির উদ্দীন ও দলের বিদ্রোহী প্রার্থী খোরশেদ আলমের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে পুলিশের এসআই নিয়ামত ও আনসার সদস্য কাউসারসহ অনেকে আহত হন।

নির্বাচনে রক্তাক্ত নরসিংদী, ১৫ দিনে ১০ মৃত্যু

স্থানীয় বাসিন্দা, রাজনীতিবিদ ও পুলিশ জানিয়েছে, নির্বাচনে রায়পুরায় রক্ত ঝরার আরেক কারণ আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ কোন্দল। ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হওয়ায় হতাহত বেশি হয়েছে।

তবে এবার নির্বাচনের সময় হওয়া সংঘর্ষে যুক্ত হয়েছে আগ্নেয়াস্ত্র। ১০ জনের সবাই নিহত হয়েছেন গুলিতে।

আগ্নেয়াস্ত্র সহজলভ্য হওয়ার বিষয়টি র‌্যাবের অভিযানেও বোঝা গেছে। ভোটের দুই দিন আগে ৯ নভেম্বর নরসিংদীর চরাঞ্চলের আলোকবালী, রায়পুরার মির্জারচর ও নিলক্ষাচরে অভিযান চালায় বাহিনীটি। ওই সময় স্বাধীন বাহিনীর সঙ্গে র‌্যাবের গোলাগুলির ঘটনা ঘটে।

অভিযানে উদ্ধার করা হয় ১টি রিভালবার, রিভালবারের ২টি গুলি, যুক্তরাষ্ট্রের তৈরি ১টি শটগান, শটগানের ২৯টি গুলি, ১টি ওয়ান শুটারগান, তিনটি বুলেটপ্রুফ জ্যাকেট, ৬টি রামদাসহ বিপুল পরিমাণ দেশীয় অস্ত্র। এ সময় গ্রেপ্তার করা হয় ১২ জনকে।

চরাঞ্চলের ভঙ্গুর যোগাযোগব্যবস্থার বিষয়টিও উঠে এসেছে তাদের কথায়। তারা জানান, দুর্গম হওয়ায় এখানে পুলিশের নজরদারি কম। দুর্গম চরাঞ্চল এবং অন্য জেলার সীমান্তবর্তী হওয়ায় খুব সহজেই অপরাধীরা গা ডাকা দিতে পারে।

রায়পুরার একাধিক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, দুই যুগের বেশি সময় ধরে আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে রায়পুরায় এমন সহিংস ঘটনা ঘটছে। উপজেলার চরাঞ্চলের ছয়টি ইউনিয়নে প্রায়ই আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে টেঁটা, বল্লম, দা ও দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে গ্রামবাসী সংঘর্ষে জড়ান। আর এর ফায়দা লোটেন গুটি কয়েক নেতা আর গ্রাম্য মোড়ল।

তারা কখনও এ দল কখনও অন্য দলকে সমর্থন দেন। এভাবেই গ্রামবাসীকে ব্যবহার করে নিজেদের স্বার্থ লোটেন মোড়লরা। তবে এবার ভয়াবহ বিষয়টি হলো দেশীয় অস্ত্রের পাশাপাশি আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার।

আওয়ামী লীগের দলীয় কোন্দলের বিষয়টিও উঠে এসেছে। ১০ জনের সবাই মারা গেছেন আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের সংঘর্ষে। স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারাও বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

রায়পুরা উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক ইমান উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, ‘আমাদের রাজনৈতিক ব্যর্থতার কারণেই চরাঞ্চলগুলোতে সহিংসতার ঘটনা ঘটে চলছে। এত বছরে কোনো হত্যাকাণ্ডের বিচার হতে দেখিনি।

‘সবই নিজেদের আধিপত্য ও স্বার্থ হাসিলের জন্য আপস করে নেয়। আর যারা এগুলো থামাবেন, তারাই এসব নিয়মিত উসকে দিচ্ছেন। চার-পাঁচটা ঘটনার বিচার হলেই এসব থেমে যেত।’

আলোকবালী ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মামুন হাসান সরকার বলেন, ‘আওয়ামী লীগের দলীয় কোন্দল আর আধিপত্যের কারণে আজকে আলোকবালীতে এ ধরনের সহিংসতা হচ্ছে। শুধু তা-ই নয়, আলোকবালী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লাহ আসাদ স্থানীয় বিএনপির নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মিলিত হয়ে আওয়ামী লীগের কর্মীদের ওপর সহিংসতা চালাচ্ছে।

‘আজকে আমি আওয়ামী লীগের লোক হয়েও গত কয়েক বছর ধরে বাড়িছাড়া। শুধু আলোকবালী ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক আসাদুল্লাহ আসাদের কারণে।’

নরসিংদী সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ও সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আফতাব উদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, ‘চরাঞ্চলগুলোর এই সহিংসতা দীর্ঘদিন ধরে চলে আসছে। মূলত আধিপত্য বিস্তারের জন্যই দুই দলে ভাগ হয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হয়।

‘রাজনৈতিক বিভাজনের সুযোগ নিয়ে তারা এসব চালিয়ে যেতে পারছে। এসব থামাতে ক্ষমতাসীন দল হিসেবে আমরা যথেষ্ট ভূমিকা রাখতে পারছি না।’

তবে জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জি এম তালেব হোসেন বলেন, ‘আলোকবালীর নির্বাচনি সহিংসতায় দুই মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে দ্বন্দ্বে হত্যাকাণ্ডটি ঘটে। এর মধ্যে কারও ইন্ধন থাকতে পারে, কিন্তু আমাদের দলীয় কোনো প্রভাব নেই।

‘পুলিশ তদন্ত করে যা পাবে সেটাই হবে। এটাতে আমাদের বলার কিছু নেই। হত্যার ঘটনায় পুলিশ তদন্ত করে যা নিশ্চিত করবে, আমরা তাতেই সহমত পোষণ করব।’

নরসিংদী অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ) সাহেব আলী পাঠান জানান, কাচারিকান্দি ও আলোকবালীর ঘটনায় মামলা হয়েছে। ভোটের দিন সহিংসতায় যারা মারা গেছেন তাদের পক্ষ থেকে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। চরে সহিংসতা এড়াতে এখনও অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন রয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তারে চেষ্টা চলছে।

তিনি আরও বলেন, ‘পুলিশ যতই চেষ্টা করুক যদি সমাজের মানুষের মধ্যে পরিবর্তন না আসে, তাহলে এ বর্বরতা কমবে না। আমি রায়পুরা ও সদরের চরাঞ্চলের কয়েকটি বিষয় লক্ষ করে দেখলাম চরাঞ্চলের শিশু-কিশোরদের মধ্যে পর্যন্ত এ ধরনের হানাহানির বিষ ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে।

‘এ বয়সে যারা মাটির পুতুল বা খেলাধুলা নিয়ে থাকার কথা, এমন শিশুরা কাগজ দিয়ে টেঁটা-বল্লম তৈরি করে। আর সেগুলো দিয়েই তারা খেলাধুলা করে। যদি এমনটাই চলতে থাকে, তাহলে চরাঞ্চলের অবস্থা আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করবে।’

আরও পড়ুন:
ইউপি সদস্য হত্যা: ঘরে আগুন পুলিশের সামনেই
ফিলিপিনো পেট্রিয়াকার রাধাকানাই জয়
ইউপি সদস্য হত্যা: সড়কে বিক্ষুব্ধ জনতা
স্বতন্ত্র প্রার্থীর মি‌ছি‌লে হামলা, আহত ১০
নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য ‘হত্যাকারীর’ বাড়িতে আগুন

শেয়ার করুন

মন্তব্য

চার স্কুলছাত্রকে অপহরণ, ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি

চার স্কুলছাত্রকে অপহরণ, ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি

নিখোঁজ কায়সারের চাচা মোহাম্মদ তাহের নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জাহাঙ্গীর ও ইব্রাহীম চারজনকে সেন্টমার্টিন বেড়াতে নেয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে নিয়ে যান। পরে তাদের মুঠোফোন ব্যবহার করে মুক্তিপণ দাবি করা হচ্ছে।’ 

কক্সবাজার রামুর খুনিয়াপালংয়ে চার স্কুলছাত্র অপহরণের শিকার হয়েছে। সেন্টমার্টিন বেড়াতে নেয়ার কথা বলে তাদের অপহরণের পর ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়েছে। অপহরণকারীরা মোবাইল ফোনে কল দিয়ে দফায় দফায় টাকা দাবি করছে বলে অভিযোগ স্বজনদের।

অপহৃতরা হলো, রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের পেচারদ্বীপের মংলা পাড়া এলাকার মোহাম্মদ কায়সার, মিজানুর রহমান নয়ন, জাহেদুল ইসলাম ও মিজানুর রহমান। তাদের মধ্যে জাহেদুল সোনারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণিতে পড়ে। বাকিরা অষ্টম শ্রেণির ছাত্র।

রামু থানায় করা অভিযোগে বলা হয়েছে, পেচারদ্বীপের বাতিঘর নামে একটি কটেজের কর্মচারী জাহাঙ্গীর আলম ও মো. ইব্রাহীমের সঙ্গে বন্ধুত্ব হয় চার স্কুলছাত্রের। সে সুবাদে গত ৭ ডিসেম্বর সকাল ১০টার দিকে চারজনকে সেন্টমার্টিন বেড়াতে নেয়ার কথা বলে টেকনাফের হোয়াইক্যং এলাকায় নিয়ে যান জাহাঙ্গীর ও ইব্রাহীম।

বেড়াতে যাওয়ার পর থেকে ওই চারজনের খোঁজ মিলছে না। নিখোঁজের ২৪ ঘন্টা পর ৮ ডিসেম্বর বুধবার দুপুরে স্বজনদের কাছে বিভিন্ন অপরিচিত নম্বর থেকে ফোন করে তাদের মুক্তিপণ হিসেবে ২০ লাখ টাকা দাবি করা হচ্ছে। আর তা না পেলে মরদেহ ফেরত পাঠানোর হুমকি দেয়া হচ্ছে।

অভিযুক্ত জাহাঙ্গীর ও ইব্রাহীম টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ২৬ নং ব্লকের বাসিন্দা। তারা দুইজনই বাতিঘর কটেজের কর্মচারী বলে স্থানীয়রা জানান।

নিখোঁজ জাহেদুলের বাবা আব্দুস সালাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে ছেলেদের নিয়ে গেছে ওই দুইজন। খোঁজখবর নিতে ফোন দিলে তাদের ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। জাহাঙ্গীর ও ইব্রাহীমের মোবাইল ফোনও বন্ধ। বুধবার দুপুরে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী পরিচয়ে মুক্তিপণ হিসেবে ২০ লাখ টাকা দাবি করা হয়।’

নিখোঁজ কায়সারের চাচা মোহাম্মদ তাহের নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জাহাঙ্গীর ও ইব্রাহীম চারজনকে সেন্টমার্টিন বেড়াতে নেয়ার কথা বলে নিয়ে যান। পরে তাদের মুঠোফোন ব্যবহার করে মুক্তিপণ দাবি করা হচ্ছে।’

অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে রামু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অরুপ কুমার চৌধুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যেহেতু বিষয়টি টেকনাফে ঘটেছে, তাই তাদের সেখানে অভিযোগ করার পরামর্শ দিয়েছি। আমরা তাদের সহযোগীতায় বিষয়টি তদন্ত করব।’

আরও পড়ুন:
ইউপি সদস্য হত্যা: ঘরে আগুন পুলিশের সামনেই
ফিলিপিনো পেট্রিয়াকার রাধাকানাই জয়
ইউপি সদস্য হত্যা: সড়কে বিক্ষুব্ধ জনতা
স্বতন্ত্র প্রার্থীর মি‌ছি‌লে হামলা, আহত ১০
নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য ‘হত্যাকারীর’ বাড়িতে আগুন

শেয়ার করুন

প্রবাসীর স্ত্রীর মরদেহ নিজ ঘরে

প্রবাসীর স্ত্রীর মরদেহ নিজ ঘরে

প্রতীকী ছবি।

মৃতের নাম মারুফা বেগম। তার বাড়ি পিরোজপুর জেলায়। স্বামী আল আমিন কুয়েত প্রবাসী। চার বছরের সন্তান নিয়ে সাভার নরসিংহপুরের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন তিনি। কাজ করতেন একটি পোশাক কারখানায়।

ঢাকার সাভারে ভাড়া বাসা থেকে উদ্ধার হয়েছে এক গৃহবধূর মরদেহ। আশুলিয়া নরসিংহপুরের বাড়িটি থেকে বুধবার রাত ১০টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার হয়।

মৃতের নাম মারুফা বেগম। তার বাড়ি পিরোজপুর জেলায়। স্বামী আল আমিন কুয়েত প্রবাসী। চার বছরের সন্তান নিয়ে তিনি নরসিংহপুরের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। কাজ করতেন একটি পোশাক কারখানায়।

মৃতের ছেলের বরাতে তার মামী আসমা বেগম বলেন, ‘মারুফার চাচাতো দেবর প্রতিদিন দুপুরে তার বাসায় খেতে আসতেন। বুধবার দুপুরে তার সঙ্গে মারুফার ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে গলা টিপে তাকে হত্যা করে দেবর। তারপর বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করে চলে যায়। ছেলের চিৎকারে আশপাশের লোকজন দরজা খুলে মারুফাকে মৃত অবস্থায় পায়।‘

আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) হাচিব সিকদার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘স্থানীয়দের খবরে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। মনে হচ্ছে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।’

আরও পড়ুন:
ইউপি সদস্য হত্যা: ঘরে আগুন পুলিশের সামনেই
ফিলিপিনো পেট্রিয়াকার রাধাকানাই জয়
ইউপি সদস্য হত্যা: সড়কে বিক্ষুব্ধ জনতা
স্বতন্ত্র প্রার্থীর মি‌ছি‌লে হামলা, আহত ১০
নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য ‘হত্যাকারীর’ বাড়িতে আগুন

শেয়ার করুন

চবিতে বলাৎকারের চেষ্টার অভিযোগে ইমামকে পিটুনি

চবিতে বলাৎকারের চেষ্টার অভিযোগে ইমামকে পিটুনি

বলাৎকার চেষ্টার অভিযোগে ইমামকে গণপিটুনি দেয় শিক্ষার্থীরা। ছবি: নিউজবাংলা

প্রত্যক্ষদর্শী ফরেস্ট্রি এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সের ছাত্র জুবায়ের নূর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ক্যান্টিনের এক ছেলেকে পেছনের বাগানে বলাৎকারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যান শহিদুল। কিছুক্ষণ পর ছেলেটি চিৎকার করলে তার ভাই ও কয়েকজন ছাত্র হাতেনাতে শহিদুলকে আটক করে। পরে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা তাকে পেটায়।’ 

ক্যান্টিনে কর্মরত এক কিশোরকে বলাৎকারের চেষ্টার অভিযোগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ফরেস্ট্রি এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স মসজিদের পেশ ইমামকে পিটুনি দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

ফরেস্ট্রি এন্ড এনভায়রনমেন্টাল ইন্সটিটিউট প্রাঙ্গণে বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত ইমামের নাম শহিদুল ইসলাম। তার বাড়ি হাটহাজারী উপজেলায়।

প্রত্যক্ষদর্শী ফরেস্ট্রি এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সের ছাত্র জুবায়ের নূর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ক্যান্টিনের এক ছেলেকে পেছনের বাগানে বলাৎকারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যান শহিদুল। কিছুক্ষণ পর ছেলেটি চিৎকার করলে তার ভাই ও কয়েকজন ছাত্র হাতেনাতে শহিদুলকে আটক করে। পরে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা তাকে পেটায়।

‘ছেলেটির বয়স ১৩ থেকে ১৪ বছর হবে। তার বড় ভাইও ক্যান্টিনে কাজ করে। এর আগে তাকেও (বড় ভাইকে) যৌন হয়রানি করা হয়েছে বলে অভিযোগ আছে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভুঁইয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রক্টরিয়াল টিমের সদস্যরা ওই ইমামকে উদ্ধার করে বিশ্ববিদ্যালয় মেডিক্যালে নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে তার পরিবারের লোকজন এসে চিকিৎসার জন্য অন্যত্র নিয়ে যান।’

তদন্ত কমিটি করে ওই ইমামের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানিয়েছেন প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভুঁইয়া।

আরও পড়ুন:
ইউপি সদস্য হত্যা: ঘরে আগুন পুলিশের সামনেই
ফিলিপিনো পেট্রিয়াকার রাধাকানাই জয়
ইউপি সদস্য হত্যা: সড়কে বিক্ষুব্ধ জনতা
স্বতন্ত্র প্রার্থীর মি‌ছি‌লে হামলা, আহত ১০
নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য ‘হত্যাকারীর’ বাড়িতে আগুন

শেয়ার করুন

নারীকে লাঞ্ছনাকর সাজা, ইউপি সদস্য বললেন ‘কম শাস্তি’

নারীকে লাঞ্ছনাকর সাজা, ইউপি সদস্য বললেন ‘কম শাস্তি’

নারীকে লাঞ্ছনার ভাইরাল ভিডিও থেকে নেয়া ছবি। নিউজবাংলা

ওই নারীকে লাঞ্ছনা করার কথা স্বীকার করে স্থানীয় ইউপি সদস্য কাওসার চৌধুরী জানিয়েছেন, স্বামী বিদেশ থাকার সুযোগে তিনি যে অপরাধ করেছেন, তার জন্য এটি ‘কম শাস্তি’।

বাগেরহাটের মোল্লাহাটে বিয়েবহির্ভূত সর্ম্পকের অভিযোগ তুলে এক গৃহবধূকে প্রকাশ্যে জুতার মালা পরিয়ে লাঠিপেটা করা হয়েছে। এ ঘটনার ভিডিও ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে ফেসবুকে।

ওই নারীকে লাঞ্ছনা করার কথা স্বীকার করে স্থানীয় ইউপি সদস্য কাওসার চৌধুরী বলেন, স্বামী বিদেশ থাকার সুযোগে তিনি যে অপরাধ করেছেন, তার জন্য এটি ‘কম শাস্তি’।

লাঞ্ছিত ওই নারী নিউজবাংলাকে জানান, মারধরের পর তার টাকা ও গয়না ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। সামাজিকভাবে তিনি হেয় হয়েছেন।

এ ঘটনা উপজেলার চুনখোলা ইউনিয়নের সিংগাতী গ্রামের।

ইউপি সদস্য কাওসার চৌধুরীসহ গ্রামের কয়েকজন লোক অভিযোগ করেন, বিভিন্ন লোকের সঙ্গে ওই নারীর বিয়েবর্হিভূত সম্পর্ক ছিল।

ইউপি সদস্য বলেন, ‘এগুলো আমাদের কাছে খারাপ লাগে। সোমবার রাতে নিজের মেয়ের শ্বশুরের সঙ্গে ওই নারীকে এক ঘরে পেয়ে তাদেরকে ধরা হয়। এরপর তার বিচার করা হয়।

‘কেবল জুতার মালা গলায় দিয়ে ও কঞ্চির লাঠি দিয়ে বাড়িয়ে লাঞ্ছিত করছি, তার বিচার আরও কঠিন হওয়া উচিত ছিল।’

ওই নারী বলেন, ‘আমার বাড়ির আশপাশের লোকজন আমাকে ধরে আমার সিঁড়ির কাছে নিয়ে আমার গলায় চেইন ছিল এক ভরি ওজনের, আট আনা ওজনের কানের দুল ও ৯৫ হাজার টাকা দামের একটি মোবাইল নিয়ে গেছে। কাওসার মেম্বার ও জানিক ছিল, এরা আমারে জুতার মালা দেছে ও কঞ্চি দিয়ে বাইড়াইছে।

‘আমি এর বিচার প্রশাসনের কাছে চাই। আর এই যে ভিডিও সব জায়গা ছড়াইছে, আমার মানসম্মান যা যাবার তা তো গেইছে। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।’

এ খবর পেয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) অনিন্দ্য মন্ডল ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রুনীয়া আক্তার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

অনিন্দ্য মন্ডল নিউজবাংলাকে বলেন, 'ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই নারীকে পাওয়া যায়নি। শোনা গেছে তিনি ওই ঘটনার পর গ্রাম ছেড়েছেন।'

রুনীয়া আক্তার বলেন, ‘ওই নারীকে এলাকায় পাওয়া যায়‌নি। তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পা‌রি‌নি। স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে‌ছি। বিষয়‌টি আমরা গুরুত্ব দিয়ে দেখ‌ছি।’

মোল্লাহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোমেন দাশ বলেন, ‘থানায় অভিযোগ পাইনি, পেলে ব্যবস্থা নেব।’

আরও পড়ুন:
ইউপি সদস্য হত্যা: ঘরে আগুন পুলিশের সামনেই
ফিলিপিনো পেট্রিয়াকার রাধাকানাই জয়
ইউপি সদস্য হত্যা: সড়কে বিক্ষুব্ধ জনতা
স্বতন্ত্র প্রার্থীর মি‌ছি‌লে হামলা, আহত ১০
নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য ‘হত্যাকারীর’ বাড়িতে আগুন

শেয়ার করুন

ছাত্রদল নেতার মৃত্যু: ছাত্রলীগ-যুবলীগের ৮ জনের নামে মামলা

ছাত্রদল নেতার মৃত্যু: ছাত্রলীগ-যুবলীগের ৮ জনের নামে মামলা

পাঁচবিবি পৌর ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হোসেন। ছবি: সংগৃহীত

বিএনপি নেতা ডালিম নিউজবাংলাকে জানান, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা হঠাৎ এসে তার মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেয়। এ ঘটনায় নেতা-কর্মীদের নিয়ে মামলা করতে পাঁচবিবি থানায় যান। সেখান থেকে ফোনে ছাত্রদল নেতা ফারুককে পৌর পার্কে ডেকে নিয়ে মারধর করে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতা-কর্মীরা।

জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে ছাত্রদল নেতার মৃত্যুর ঘটনায় ছাত্রলীগ-যুবলীগের আট নেতা-কর্মীর নামে মামলা করেছেন নিহতের মা।

পাঁচবিবি থানায় বুধবার সন্ধ্যায় করা এই মামলায় আসামি করা হয়েছে অজ্ঞাতপরিচয় আরও আটজনকে।

এর আগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক ছাত্রলীগ ও যুবলীগের চার নেতা-কর্মীকে এই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

তারা হলেন মহীপুর হাজী মহাসীন সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান, কুসুম্বা ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা আরিফুল ইসলাম, যুবলীগ সদস্য আনিছুর রহমান ও মুজাহিদুল ইসলাম।

পাঁচবিবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মৃত ফারুক হোসেনের মা বিলকিস বেগম এজাহারে লিখেছেন, ফোন করে ডেকে নিয়ে তার ছেলেকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মঙ্গলবার মধ্যরাতে মারা যান পাঁচবিবি পৌর ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হোসেন। তার বাড়ি পৌর শহরের দানেজপুর এলাকায়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে ওসি পলাশ জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলা যুবলীগের সদস্য আনিছুর রহমান শিপনের সঙ্গে বিএনপির আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাম ডালিমের তর্ক হয়। এর জেরে শিপন ডালিমের মোটরসাইকেলে পুড়িয়ে দেন।

বিএনপি নেতা ডালিম নিউজবাংলাকে জানান, দলীয় কার্যালয়ে বসে তারা সন্ধ্যায় আলোচনা করছিলেন। সে সময় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা হঠাৎ এসে তার মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেয়। এ ঘটনায় নেতা-কর্মীদের নিয়ে মামলা করতে পাঁচবিবি থানায় যান। সেখান থেকে ফোনে ছাত্রদল নেতা ফারুককে পৌর পার্কে ডেকে নিয়ে মারধর করে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতা-কর্মীরা।

ডালিম আরও জানান, ফারুককে তারা হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

অভিযোগের বিষয়ে পাঁচবিবি উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক মিন্নুর বলেন, ‘ফারুক হত্যার সঙ্গে যুবলীগ নেতা-কর্মীদের জড়িত থাকার যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সত্য নয়।’

পাঁচবিবি উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ধীমান চন্দ্র ঘোষ বলেন, ‘ছাত্রলীগের কোনো নেতা-কর্মী হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকবে এটা বিশ্বাসযোগ্য নয়।’

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক রাফসান জানি বলেন, ‘হাসপাতালে আনার আগেই ফারুকের মৃত্যু হয়েছে। তার শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তার পকেটে নাইট্রো গ্লিসারিনের একটি প্যাকেট পাওয়া গেছে। হার্ট অ্যাটাকে তার মৃত্যু হতে পারে। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।’

পাঁচবিবি থানার ওসি পলাশ জানান, বিএনপি নেতার মোটরসাইকেল পোড়ানোর ঘটনায় মামলা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
ইউপি সদস্য হত্যা: ঘরে আগুন পুলিশের সামনেই
ফিলিপিনো পেট্রিয়াকার রাধাকানাই জয়
ইউপি সদস্য হত্যা: সড়কে বিক্ষুব্ধ জনতা
স্বতন্ত্র প্রার্থীর মি‌ছি‌লে হামলা, আহত ১০
নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য ‘হত্যাকারীর’ বাড়িতে আগুন

শেয়ার করুন

ইয়াবা পাচারের দায়ে রোহিঙ্গা মা-ছেলের কারাদণ্ড

ইয়াবা পাচারের দায়ে রোহিঙ্গা মা-ছেলের কারাদণ্ড

২০১৬ সালের ২৮ জুলাই দুপুরে টেকনাফ পৌরসভার নাইট্যংপাড়ায় অভিযান চালায় বিজিবির একটি দল। সেখান থেকে ৯ লাখ ৯৯ হাজার টাকা মূল্যের ৩ হাজার ৩৩০ পিস ইয়াবাসহ আটক করা হয় রোহিঙ্গা মা-ছেলেকে।

কক্সবাজারে ইয়াবা পাচারের দায়ে এক রোহিঙ্গা নারী ও তার ছেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। সেই সঙ্গে প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড, অনাদায়ে আরও এক মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ-১ আদালতের বিচারক মাহমুদুল হাসান বুধবার দুপুরে এ রায় দেন।

আসামিদের মধ্যে মিয়ানমারের আকিয়াব জেলার মংডুর দলিয়াপাড়ার নুনু বেগমকে ছয় বছরের এবং তার ছেলে মোহাম্মদ ইউনুসকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) আবদুর রউফ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ২০১৬ সালের ২৮ জুলাই দুপুরে টেকনাফ পৌরসভার নাইট্যংপাড়ায় অভিযান চালায় বিজিবির একটি দল। সেখান থেকে ৯ লাখ ৯৯ হাজার টাকা মূল্যের ৩ হাজার ৩৩০ পিস ইয়াবাসহ আটক করা হয় আসামিদের।

তাদের নামে টেকনাফ থানায় মাদকের মামলা করেন ২ নম্বর বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের নায়েক সুবেদার গুরুপদ বিশ্বাস।

আরও পড়ুন:
ইউপি সদস্য হত্যা: ঘরে আগুন পুলিশের সামনেই
ফিলিপিনো পেট্রিয়াকার রাধাকানাই জয়
ইউপি সদস্য হত্যা: সড়কে বিক্ষুব্ধ জনতা
স্বতন্ত্র প্রার্থীর মি‌ছি‌লে হামলা, আহত ১০
নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য ‘হত্যাকারীর’ বাড়িতে আগুন

শেয়ার করুন

হামলায় ভাঙল ইউপি সদস্যের দুই পা

হামলায় ভাঙল ইউপি সদস্যের দুই পা

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন শেখ। ছবি: নিউজবাংলা

সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রুহুল জানান, গত ১১ নভেম্বরের ইউপি নির্বাচনে তিনি সদস্য হিসেবে বিজয়ী হন। এ নির্বাচনে তিনি নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয় প্রতিপক্ষের লোকজন।

পিরোজপুর সদরে পুর্ব বিরোধের জেরে ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যেকে তুলে নিয়ে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। হামলা ভেঙে গেছে ওই ইউপি সদস্যের দুই পা।

সদর উপজেলার কদমতলা ইউনিয়নে বুধবার দুপুরে এই ঘটনা ঘটে। আহত রুহুল আমিন শেখ শিকদারমল্লিক ইউপির ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।

পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আ. জা. মো. মাসুদুজ্জামান হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রুহুল জানান, গত ১১ নভেম্বরের ইউপি নির্বাচনে তিনি সদস্য হিসেবে বিজয়ী হন। এ নির্বাচনে তিনি নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয় প্রতিপক্ষের লোকজন।

আমিন অভিযোগ করেন, বুধবার তিনি শিকদারমল্লিক ইউনিয়নের চালিতাখালী গ্রামে নিজ বাড়ি থেকে মোটরসাইকেলে সদরের দিকে যাচ্ছিলেন। পথে কদমতলা ইউনিয়নের ঝনঝনিয়াতলা এলাকায় মো. ফারুকসহ ২০ থেকে ২৫ জন লোক তার পথরোধ করে। পরে তাকে তুলে কিছুদূর নিয়ে জিআই পাইপ ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মারধর করা হয়। পিটিয়ে তার দুই পা ভেঙে দেয়া হয়।

সদর হাসপাতালের চিকিৎসক তন্ময় মজুমদার জানান, হাসপাতালে আহত অবস্থায় রুহুলকে আনা হয়। তার দুই পা শক্ত কোনো বস্তুর আঘাতে ভেঙে গেছে। শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্নও আছে। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সদর থানার ওসি মাসুদুজ্জামান জানান, ঘটনাটি খতিয়ে দেখতে কদমতলা এলাকায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
ইউপি সদস্য হত্যা: ঘরে আগুন পুলিশের সামনেই
ফিলিপিনো পেট্রিয়াকার রাধাকানাই জয়
ইউপি সদস্য হত্যা: সড়কে বিক্ষুব্ধ জনতা
স্বতন্ত্র প্রার্থীর মি‌ছি‌লে হামলা, আহত ১০
নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য ‘হত্যাকারীর’ বাড়িতে আগুন

শেয়ার করুন