ভোট নিতে প্রকাশ্যে হুমকি, ব্যবস্থা কম

ভোট নিতে প্রকাশ্যে হুমকি, ব্যবস্থা কম

ঝিকরগাছা সদর ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীর নির্বাচনি সভায় বক্তব্য দেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম। ছবি: নিউজবাংলা

গত তিন সপ্তাহের প্রচারে নজিরবিহীন নানা বক্তব্য উঠে এসেছে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বা তার পক্ষের নেতাদের কাছ থেকে। কোনো এলাকায় তারা জনসভায় মাইকে ঘোষণা দিয়েছেন, ভোট দিতে হবে প্রকাশ্যে, কোথাও বলেছেন, নৌকা মার্কায় ভোট না দিলে কেন্দ্রে যাওয়ার দরকার নেই, কোথাও বলেছেন, তাদের ভোট না দিলে এলাকায় নামাজ পড়তে দেয়া হবে না। একটি এলাকায় এক নেতা একে-৪৭-এর চেয়ে বড় কিছু নিয়ে আসার হুমকি দিয়েছেন।

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রচারে বেশ কয়েকটি এলাকায় ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাদের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে হুমকি দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

রাজনীতিতে প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির বর্জনের মধ্যে এই ভোটে দলটির নেতারা প্রার্থী হয়েছেন স্বতন্ত্র হিসেবে। তবে বেশির ভাগ এলাকাতেই নৌকা মার্কার প্রার্থী আওয়ামী লীগ নেতাদের প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী দলের প্রতীক না পেয়ে স্বতন্ত্র হিসেবে লড়া ক্ষমতাসীন দল বা তার সহযোগী সংগঠনের নেতারাই।

তিন সপ্তাহের প্রচার শেষে বৃহস্পতিবার সকাল ৮টা থেকে ভোট হবে ৮৪৮ ইউনিয়ন পরিষদে। এরই মধ্যে প্রচার শেষ হয়েছে। কেন্দ্রে কেন্দ্রে এখন যাচ্ছে ভোটের সরঞ্জাম।

গত তিন সপ্তাহের প্রচারে নজিরবিহীন নানা বক্তব্য উঠে এসেছে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বা তার পক্ষের নেতাদের কাছ থেকে। কোনো এলাকায় তারা জনসভায় মাইকে ঘোষণা দিয়েছেন, ভোট দিতে হবে প্রকাশ্যে, কোথাও বলেছেন, নৌকা মার্কায় ভোট না দিলে কেন্দ্রে যাওয়ার দরকার নেই, কোথাও বলেছেন, তাদের ভোট না দিলে এলাকায় নামাজ পড়তে দেয়া হবে না। একটি এলাকায় এক নেতা একে-৪৭-এর চেয়ে বড় কিছু নিয়ে আসার হুমকি দিয়েছেন।

এসব ঘটনায় স্থানীয় প্রশাসন ক্ষমতাসীন দলের নেতাদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিয়েছে এমন নয়। কোথাও কোথায় তাদের সতর্ক করা হয়েছে, কোথাও কোথাও বক্তব্যের ব্যাখ্যা পেয়ে সন্তুষ্ট নির্বাচন করার দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তারা।

ক্ষমতাসীন দলের বহু নেতার হুমকিসংবলিত এসব বক্তব্যের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এখনও রয়ে গেছে। যদিও যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তাদের কেউ কেউ দাবি করছেন, তাদের বক্তব্য কাটছাঁট করে বিকৃত করা হয়েছে। তারা অপপ্রচারের শিকার। কেউ কেউ আবার নিজেদের বক্তব্যের পক্ষে সাফাই গাইছেন।

অবশ্য কেবল বক্তব্য নয়, ভোটে প্রভাব বিস্তারের চেষ্টায় এখন সংঘর্ষে এখন পর্যন্ত অন্তত সাতজনের মৃত্যু হয়েছে। আহত হয়েছে শত শত। একটিতে প্রার্থীদের অজান্তে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের ঘটনায় সেই উপজেলায় ভোট স্থগিত হয়েছে। একটি পৌরসভায় ভোট থেকে সরে দাঁড়াতে বাধ্য করার অভিযোগে একজন বিষপান করেছেন। আরও নানা ঘটনা ঘটছে।

এসব ঘটনায় নির্বাচন কমিশন কী ব্যবস্থা নিচ্ছে, জানতে চাইলে কমিশনের যুগ্ম সচিব (নির্বাচন) আতিয়ার রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সহিংসতা রোধে সব জেলা প্রশাসককে চিঠি দিয়েছে নির্বাচন কমিশন। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, আইজিপি ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়কে চাহিদাপত্র দেয়া হয়েছে। তারপরও কোথাও যদি কোনো বড় ধরনের ঘটনা ঘটে, সে জন্য কমিশন প্রস্তুত আছে।’

তিনি বলেন, ‘নির্বাচন কমিশন জেলা প্রশাসন ও রিটার্নিং কর্মকর্তাদের যেকোনো ধরনের অভিযোগ গুরুত্বের সঙ্গে গ্রহণ ও যাচাইয়ের নির্দেশসহ কমিশনকে তাৎক্ষণিকভাবে জানানোরও নির্দেশ দিয়েছে। ইসি এসব বিষয়ে সজাগ আছে।’

যশোরের ঝিকরগাছায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীকে ভোট না দিলে ভোটের দিন কেন্দ্রে না গিয়ে আত্মীয়ের বাড়িতে গরু-মুরগি খেতে যেতে বলেছেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মনিরুল ইসলাম।

সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আমির হোসেনের নির্বাচনি জনসভায় ৫ নভেম্বর তিনি বলেন, ‘নৌকা মার্কায় ভোট না দিলে ভোটের মাঠে আসার দরকার নেই এবং এলে প্রকাশ্যে নৌকায় সিল মারতে হবে। যদি নৌকায় ভোট না দেয়ার ইচ্ছা থাকে, তাইলে আত্মীয়ের বাড়ি গিয়ে মুরগি-গরু খান, শান্তিতে থাকেন।’

মনিরুলের এমন বক্তব্যের অডিও ক্লিপসহ যশোর জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ করেন ওই ইউপিতে আনারস প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করা স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল বারিক। তিনি যুবলীগের নেতা।

বক্তব্যের পরপর নৌকার প্রার্থী আমির হোসেন বলেছিলেন, ‘নেতা কী বলেছেন সেটা তিনি ভালো জানেন। আমি খেয়াল করিনি।’

এ বিষয়ে কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে, জানতে চাইলে মঙ্গলবার নিউজবাংলাকে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা অপূর্ব কুমার বিশ্বাস বলেন, ‘অনেকগুলো অভিযোগ পেয়েছি। এগুলোর বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে বলেছি।’

ভোটকেন্দ্রে যেতে বাধা দেয়ার অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে বলেন তিনি বলেন, ‘এ অভিযোগের তদন্তের অগ্রগতি সম্পর্কে এই মুহূর্তে বলতে পারছি না।’

কক্সবাজারের উখিয়ার একটি ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে ভোট না দিলে কবর দিতে দেয়া হবে না বলে হুমকি দেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী শাহ আলম।

এই বক্তব্য ভাইরাল হলে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী থানায় তার বিরুদ্ধে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের লিখিত অভিযোগও করেন। নির্বাচন কমিশন থেকে বক্তব্যের ব্যাখ্যা চেয়ে চিঠিও দেয়া হয়।

ঘটনাটি ঘটে হলদিয়াপালং ইউনিয়নে। সেখানে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন না পেয়ে স্বতন্ত্র হিসেবে লড়া যুবলীগের নেতা ইমরুল কায়েস চৌধুরী।

১ নভেম্বর রাতে ৯ নম্বর ওয়ার্ডের মনির মার্কেট এলাকায় নিজের প্রচার অফিসের উদ্বোধন করে নৌকায় ভোট না দেয়ার পরিণতি সম্পর্কে স্মরণ করিয়ে দেন প্রার্থী।

ভোট নিতে প্রকাশ্যে হুমকি, ব্যবস্থা কম
হলদিয়াপালং ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. শাহ আলম। ছবি: নিউজবাংলা

ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে দেখা যায়, শাহ আলম বলছেন, ‘কী অইবা? চিহ্নিত অইবা। হবরস্থান চৌধুরীপাড়া অইব দে। আইত ন পারিবা। আর হবরস্থানত আই হবর দিত ন দিয়্যুম। হবরস্থান আঁর, আঁই দিত ন দিয়্যুম এডে।'

অর্থাৎ ‘(ভোট না দিলে) কী হবে? চিহ্নিত হবে। কবরস্থান চৌধুরীপাড়ায় হবে। এখানে আসতে পারবে না। আর এখানকার কবরস্থানে কবর দিতে দেব না। কবরস্থান আমার। এখানে আমি কাউকে কবর দিতে দেব না।’

প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর বাড়ি চৌধুরীপাড়ায়। শাহ আলমের বাড়ি কুলালপাড়া এলাকায়। এই বক্তব্যের মাধ্যমে তিনি বুঝিয়েছেন, তার এলাকার যে ভোটার তার প্রতিদ্বন্দ্বীকে ভোট দেবে, তাদের কবর চৌধুরীপাড়ায় দিতে হবে। শাহ আলম তার নিজের এলাকায় হতে দেবেন না।

শাহ আলম আরও বলেন, ‘সোজা হতা, বাংলা হতা। চৌধুরীপাড়াত জনগুই পড়িব লাশ-ইবা। মসজিদত আই না পারিবা। আর বেগ্গুন ঐক্যবদ্ধ। এই পাঁচজন, আটজন, দশ ন, বেগ্গিন বন্ধ অই যাইব। চিহ্নিত গইজ্যুম, সমস্ত কিছু বন্ধ অই যাইব।’

অর্থাৎ ‘সোজা কথা, বাংলা কথা। চৌধুরীপাড়ায় এই লাশটাকে চলে যেতে হবে। মসজিদেও আসতে পারবে না। আমরা সবাই ঐক্যবদ্ধ। এই পাঁচ, আট, দশজনের সবকিছু বন্ধ করে দেয়া হবে। সবাইকে চিহ্নিত করে রাখা হবে। সবকিছু বন্ধ হয়ে যাবে।

এমন বক্তব্যের বিষয়ে শাহ আলম শুরুতে ব্যাখ্যা না দিলেও পরে দাবি করেন, রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা হয়রানি করতে তার ভিডিও এডিট করে ভাইরাল করে দিয়েছে।

এ ধরনের বক্তব্যকে নির্বাচনি আরচণবিধির স্পষ্ট লঙ্ঘন বলছেন উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ইরফান উদ্দিন। আওয়ামী লীগের এই নেতাকে কারণ দর্শাতে চিঠি দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন তিনি।

কিশোরগঞ্জের বাজিতপুরে হুমাইপুর ইউনিয়নে নৌকার বাইরে কাউকে ভোট দিতে না দেয়ার হুমকি দিয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের এক নেতা। নৌকাকে জেতাতে প্রয়োজনে একে-৪৭ অস্ত্রসহ সব ধরনের শক্তি খাটানোর হুমকিও দিয়েছেন তিনি।

হুমকি দেয়া আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল্লাহ আল মামুন বাজিতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

৫ নভেম্বর বিকেলে বাজিতপুরের হুমাইপুর ইউনিয়নের টান গোসাইপুর গ্রামে হুমাইপুর ইসলামিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসার মাঠে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় নৌকার চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী রফিকুল ইসলাম ধনু মিয়ার পক্ষে তিনি এ হুমকি দেন।

পরে সেই জনসভার ৭ মিনিট ৯ সেকেন্ডের একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

বক্তব্যের শুরুতে তিনি বলেন, ‘আপনারা যারা মেম্বার পদপ্রার্থী হয়েছেন, আপনাদের কাউকেই নৌকার বাইরে ভোট দেয়ার সুযোগ দেয়া হবে না।’

মঞ্চের টেবিলটা দেখিয়ে তিনি বলেন, ‘নৌকার ভোট হবে এই রকম টেবিলের ওপরে, ওপেন। আপনারা যারা বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে মেম্বার প্রার্থী হয়েছেন, আপনারা আপনাদের জয়ের চেষ্টা করে মেম্বার প্রার্থী হন, মহিলারা মহিলা মেম্বার প্রার্থী হন, আমাদের কোনো আপত্তি নাই।

‘আমাদের নেতা-কর্মীরা কোনো বাধা দেবে না। কিন্তু আপনাদের এজেন্টের বলে দিবেন নৌকার ভোট কোনো কাইত্ব্যের (গোপনে) ভেতরে হবে না, নৌকার ভোট হবে টেবিলের মধ্যে সবার সামনে। এখানে যদি কোনো মেম্বার প্রার্থী বা তাদের এজেন্ট বিরোধিতা করেন, আমরা তাৎক্ষণিক সেই প্রার্থীর এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেব।

‘আমরা সেদিন শুধু হুমাইপুরের শক্তি নিয়ে আসব না। আমাদের একে-৪৭ নাই, কিন্তু প্রয়োজনে সব নিয়ে আসব।’

আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘প্রশাসন আমাদের, পুলিশ বাহিনী আমাদের, সরকার আমাদের। আর কিছু কি বলার দরকার আছে? আমি কি আপনাদের খারাপ কিছু কইছি? কিন্তু কইলে এইডে আফনেরার লাইগ্যেই কইছি।’

সেই বক্তব্য ছড়িয়ে পড়ার পর আল মামুন এখন দেখা দিচ্ছেন না। ফোনও ধরছেন না।

ওই এলাকায় তার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি নেতা গতবারের জয়ী মামুন মিয়ার অবশ্য ভোটের পরিবশ নিয়ে কোনো অভিযোগ নেই। যদিও অন্য একজন প্রার্থী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

ভোট নিতে প্রকাশ্যে হুমকি, ব্যবস্থা কম
জনসভায় বক্তব্য দিচ্ছেন বাজিতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন। ছবি: নিউজবাংলা

কিশোরগঞ্জের পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সূত্র জানায়, বাজিতপুর পৌর শহরের আলোচিত সাচ্চু হত্যা মামলায় পিবিআই ২০২০ সালের ১১ নভেম্বর মামুনকে গ্রেপ্তার করে। মামলাটিতে প্রায় চার মাস কারাভোগের পর জামিনে ছাড়া পান তিনি।

সম্প্রতি আদালতে মামলাটির অভিযোগপত্র জমা দিয়েছে পিবিআই। অভিযোগপত্রে হত্যার নির্দেশদাতা হিসেবে আওয়ামী লীগ নেতার নাম আছে।

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জে নৌকার প্রার্থীকে খোলাখুলি ভোট দেয়ার নির্দেশনা দিয়ে আলোচিত হয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হাবিবুর রহমান পবন।

রামগঞ্জ উপজেলার ৩ নম্বর ভাদুর ইউনিয়নে ২৮ নভেম্বরের ভোটের প্রস্তুতি হিসেবে ৭ নভেম্বর রাতে দলীয় এক সভায় তিনি বলেন, ‘সবাইকে নৌকার ভোট ওপেনে মারতে হবে। এর বাইরে কোনো কথা নাই। মেম্বারদের ভোট গোপনে হবে। মাইন্ড ইট, এর বিকল্প কেউ কোনো চিন্তা করবেন না। আমরা আগামী ২৮ তারিখে নৌকার মাঝি জাবেদকে জয়ী করে আনব।’

সেখানে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাবেদ হোসেন ছাড়াও স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে রয়েছেন বর্তমান ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি জাহিদ হোসেন ভূঁইয়া এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী রাসেল হোসেন।

বর্তমান চেয়ারম্যান জাহিদ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ‘আমি এ বিষয়ে উপজেলা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।’

যুবলীগ নেতা হাবিবুর রহমান পবন বলেন, ‘আমার বক্তব্য এডিট করে প্রতিপক্ষের লোকজন প্রোপাগান্ডা ছড়াচ্ছে।’

অভিযোগের বিষয়ে উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা ও রিটার্নিং কর্মকর্তা আবু তাহের বলেন, ‘এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পাইনি। ঊর্ধ্বতনদের সঙ্গে কথা বলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ভোট নিতে প্রকাশ্যে হুমকি, ব্যবস্থা কম

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ৩ নম্বর ভাদুর ইউনিয়নে নির্বাচনি প্রচারে অংশ নিচ্ছেন যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হাবিবুর রহমান পবন। ছবি: ফেসবুক

ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের পাশাপাশি কুষ্টিয়ার মিরপুর পৌরসভায় মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এনামুল হকের একটি বক্তব্য ফেসবুকে ভাইরাল হওয়ার পর এলাকায় তোলপাড় হচ্ছে।

ভিডিওতে দেখা যায়, ৩ নম্বর ওয়ার্ডের মোশারফপুরে পৌর এলাকায় নির্বাচনি সভায় তিনি ভোটারদের বলেন, ‘আপনাদের মধ্যে যাতে দূরত্ব না বাড়ে। সন্দেহ সৃষ্টি না হয়, তাই আপনারা সব ওপেন ভোট দেন। কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলরের ভোট ভেতরে গিয়ে দেবেন। আর মেয়র ভোটটি সরাসরি দিয়ে দেবেন।’

এই বক্তব্যের ব্যাখ্যার বিষয়ে আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, ‘ভোটারদের বলেছি প্রকাশ্যে দিলে দেবেন, আমার কোনো আপত্তি নেই। বাধ্য করে ভোট নেব না। তারা অগ্রিম ভোটটা দিতে পারলে খুশি হতো।’

ভিডিও দেখার পর এ বিষয়ে কমিশনে লিখিত অভিযোগ করেছেন স্বতন্ত্র মেয়র প্রার্থী আরিফুল হক। তিনি বলেন, ‘আইন লঙ্ঘন করায় তার বিরুদ্ধে মামলা এবং অনৈতিক প্রচেষ্টার জন্য ব্যবস্থা নেয়া উচিত।’

বিএনপি নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী রহমত আলী রব্বান বলেন, ‘নৌকার প্রার্থী ওপেন ভোট মারার কথা বলছেন। এটা বন্ধ না হলে মানুষ ভোট দিতে আসবে না।’

কী ব্যবস্থা নিয়েছেন- জানতে চাইলে রিটার্নিং কর্মকর্তা লিংকন বিশ্বাস জানান, অভিযোগ পেয়ে তারা এনামুল হককে সতর্ক করেছেন।

আরও পড়ুন:
একে-৪৭-এর চেয়ে বড় কী আছে আ.লীগ নেতার কাছে
ইউপি নির্বাচন: কেন্দ্রে যাচ্ছে ভোটের সরঞ্জাম
চতুর্থ ধাপে ৮৪০ ইউপি নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর
কালকিনিতে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষে আহত ২০
নৌকার অফিসে ‘ভাঙচুর-আগুন’, পেট্রোল বোমা উদ্ধারে মামলা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

চার স্কুলছাত্রকে অপহরণ, ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি

চার স্কুলছাত্রকে অপহরণ, ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি

নিখোঁজ কায়সারের চাচা মোহাম্মদ তাহের নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জাহাঙ্গীর ও ইব্রাহীম চারজনকে সেন্টমার্টিন বেড়াতে নেয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে নিয়ে যান। পরে তাদের মুঠোফোন ব্যবহার করে মুক্তিপণ দাবি করা হচ্ছে।’ 

কক্সবাজার রামুর খুনিয়াপালংয়ে চার স্কুলছাত্র অপহরণের শিকার হয়েছে। সেন্টমার্টিন বেড়াতে নেয়ার কথা বলে তাদের অপহরণের পর ২০ লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করা হয়েছে। অপহরণকারীরা মোবাইল ফোনে কল দিয়ে দফায় দফায় টাকা দাবি করছে বলে অভিযোগ স্বজনদের।

অপহৃতরা হলো, রামু উপজেলার খুনিয়াপালং ইউনিয়নের পেচারদ্বীপের মংলা পাড়া এলাকার মোহাম্মদ কায়সার, মিজানুর রহমান নয়ন, জাহেদুল ইসলাম ও মিজানুর রহমান। তাদের মধ্যে জাহেদুল সোনারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণিতে পড়ে। বাকিরা অষ্টম শ্রেণির ছাত্র।

রামু থানায় করা অভিযোগে বলা হয়েছে, পেচারদ্বীপের বাতিঘর নামে একটি কটেজের কর্মচারী জাহাঙ্গীর আলম ও মো. ইব্রাহীমের সঙ্গে বন্ধুত্ব হয় চার স্কুলছাত্রের। সে সুবাদে গত ৭ ডিসেম্বর সকাল ১০টার দিকে চারজনকে সেন্টমার্টিন বেড়াতে নেয়ার কথা বলে টেকনাফের হোয়াইক্যং এলাকায় নিয়ে যান জাহাঙ্গীর ও ইব্রাহীম।

বেড়াতে যাওয়ার পর থেকে ওই চারজনের খোঁজ মিলছে না। নিখোঁজের ২৪ ঘন্টা পর ৮ ডিসেম্বর বুধবার দুপুরে স্বজনদের কাছে বিভিন্ন অপরিচিত নম্বর থেকে ফোন করে তাদের মুক্তিপণ হিসেবে ২০ লাখ টাকা দাবি করা হচ্ছে। আর তা না পেলে মরদেহ ফেরত পাঠানোর হুমকি দেয়া হচ্ছে।

অভিযুক্ত জাহাঙ্গীর ও ইব্রাহীম টেকনাফের নয়াপাড়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ২৬ নং ব্লকের বাসিন্দা। তারা দুইজনই বাতিঘর কটেজের কর্মচারী বলে স্থানীয়রা জানান।

নিখোঁজ জাহেদুলের বাবা আব্দুস সালাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বেড়াতে যাওয়ার কথা বলে ছেলেদের নিয়ে গেছে ওই দুইজন। খোঁজখবর নিতে ফোন দিলে তাদের ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। জাহাঙ্গীর ও ইব্রাহীমের মোবাইল ফোনও বন্ধ। বুধবার দুপুরে রোহিঙ্গা সন্ত্রাসী পরিচয়ে মুক্তিপণ হিসেবে ২০ লাখ টাকা দাবি করা হয়।’

নিখোঁজ কায়সারের চাচা মোহাম্মদ তাহের নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জাহাঙ্গীর ও ইব্রাহীম চারজনকে সেন্টমার্টিন বেড়াতে নেয়ার কথা বলে নিয়ে যান। পরে তাদের মুঠোফোন ব্যবহার করে মুক্তিপণ দাবি করা হচ্ছে।’

অভিযোগ পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করে রামু থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) অরুপ কুমার চৌধুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যেহেতু বিষয়টি টেকনাফে ঘটেছে, তাই তাদের সেখানে অভিযোগ করার পরামর্শ দিয়েছি। আমরা তাদের সহযোগীতায় বিষয়টি তদন্ত করব।’

আরও পড়ুন:
একে-৪৭-এর চেয়ে বড় কী আছে আ.লীগ নেতার কাছে
ইউপি নির্বাচন: কেন্দ্রে যাচ্ছে ভোটের সরঞ্জাম
চতুর্থ ধাপে ৮৪০ ইউপি নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর
কালকিনিতে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষে আহত ২০
নৌকার অফিসে ‘ভাঙচুর-আগুন’, পেট্রোল বোমা উদ্ধারে মামলা

শেয়ার করুন

প্রবাসীর স্ত্রীর মরদেহ নিজ ঘরে

প্রবাসীর স্ত্রীর মরদেহ নিজ ঘরে

প্রতীকী ছবি।

মৃতের নাম মারুফা বেগম। তার বাড়ি পিরোজপুর জেলায়। স্বামী আল আমিন কুয়েত প্রবাসী। চার বছরের সন্তান নিয়ে সাভার নরসিংহপুরের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন তিনি। কাজ করতেন একটি পোশাক কারখানায়।

ঢাকার সাভারে ভাড়া বাসা থেকে উদ্ধার হয়েছে এক গৃহবধূর মরদেহ। আশুলিয়া নরসিংহপুরের বাড়িটি থেকে বুধবার রাত ১০টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার হয়।

মৃতের নাম মারুফা বেগম। তার বাড়ি পিরোজপুর জেলায়। স্বামী আল আমিন কুয়েত প্রবাসী। চার বছরের সন্তান নিয়ে তিনি নরসিংহপুরের একটি বাড়িতে ভাড়া থাকতেন। কাজ করতেন একটি পোশাক কারখানায়।

মৃতের ছেলের বরাতে তার মামী আসমা বেগম বলেন, ‘মারুফার চাচাতো দেবর প্রতিদিন দুপুরে তার বাসায় খেতে আসতেন। বুধবার দুপুরে তার সঙ্গে মারুফার ঝগড়া হয়। এক পর্যায়ে গলা টিপে তাকে হত্যা করে দেবর। তারপর বাইরে থেকে দরজা বন্ধ করে চলে যায়। ছেলের চিৎকারে আশপাশের লোকজন দরজা খুলে মারুফাকে মৃত অবস্থায় পায়।‘

আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) হাচিব সিকদার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘স্থানীয়দের খবরে মরদেহ উদ্ধার করে থানায় আনা হয়েছে। মনে হচ্ছে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হবে। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।’

আরও পড়ুন:
একে-৪৭-এর চেয়ে বড় কী আছে আ.লীগ নেতার কাছে
ইউপি নির্বাচন: কেন্দ্রে যাচ্ছে ভোটের সরঞ্জাম
চতুর্থ ধাপে ৮৪০ ইউপি নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর
কালকিনিতে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষে আহত ২০
নৌকার অফিসে ‘ভাঙচুর-আগুন’, পেট্রোল বোমা উদ্ধারে মামলা

শেয়ার করুন

চবিতে বলাৎকারের চেষ্টার অভিযোগে ইমামকে পিটুনি

চবিতে বলাৎকারের চেষ্টার অভিযোগে ইমামকে পিটুনি

বলাৎকার চেষ্টার অভিযোগে ইমামকে গণপিটুনি দেয় শিক্ষার্থীরা। ছবি: নিউজবাংলা

প্রত্যক্ষদর্শী ফরেস্ট্রি এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সের ছাত্র জুবায়ের নূর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ক্যান্টিনের এক ছেলেকে পেছনের বাগানে বলাৎকারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যান শহিদুল। কিছুক্ষণ পর ছেলেটি চিৎকার করলে তার ভাই ও কয়েকজন ছাত্র হাতেনাতে শহিদুলকে আটক করে। পরে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা তাকে পেটায়।’ 

ক্যান্টিনে কর্মরত এক কিশোরকে বলাৎকারের চেষ্টার অভিযোগে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) ফরেস্ট্রি এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স মসজিদের পেশ ইমামকে পিটুনি দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

ফরেস্ট্রি এন্ড এনভায়রনমেন্টাল ইন্সটিটিউট প্রাঙ্গণে বুধবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

অভিযুক্ত ইমামের নাম শহিদুল ইসলাম। তার বাড়ি হাটহাজারী উপজেলায়।

প্রত্যক্ষদর্শী ফরেস্ট্রি এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্সের ছাত্র জুবায়ের নূর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ক্যান্টিনের এক ছেলেকে পেছনের বাগানে বলাৎকারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যান শহিদুল। কিছুক্ষণ পর ছেলেটি চিৎকার করলে তার ভাই ও কয়েকজন ছাত্র হাতেনাতে শহিদুলকে আটক করে। পরে ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা তাকে পেটায়।

‘ছেলেটির বয়স ১৩ থেকে ১৪ বছর হবে। তার বড় ভাইও ক্যান্টিনে কাজ করে। এর আগে তাকেও (বড় ভাইকে) যৌন হয়রানি করা হয়েছে বলে অভিযোগ আছে।’

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভুঁইয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রক্টরিয়াল টিমের সদস্যরা ওই ইমামকে উদ্ধার করে বিশ্ববিদ্যালয় মেডিক্যালে নিয়ে যান। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। পরে তার পরিবারের লোকজন এসে চিকিৎসার জন্য অন্যত্র নিয়ে যান।’

তদন্ত কমিটি করে ওই ইমামের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানিয়েছেন প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভুঁইয়া।

আরও পড়ুন:
একে-৪৭-এর চেয়ে বড় কী আছে আ.লীগ নেতার কাছে
ইউপি নির্বাচন: কেন্দ্রে যাচ্ছে ভোটের সরঞ্জাম
চতুর্থ ধাপে ৮৪০ ইউপি নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর
কালকিনিতে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষে আহত ২০
নৌকার অফিসে ‘ভাঙচুর-আগুন’, পেট্রোল বোমা উদ্ধারে মামলা

শেয়ার করুন

নারীকে লাঞ্ছনাকর সাজা, ইউপি সদস্য বললেন ‘কম শাস্তি’

নারীকে লাঞ্ছনাকর সাজা, ইউপি সদস্য বললেন ‘কম শাস্তি’

নারীকে লাঞ্ছনার ভাইরাল ভিডিও থেকে নেয়া ছবি। নিউজবাংলা

ওই নারীকে লাঞ্ছনা করার কথা স্বীকার করে স্থানীয় ইউপি সদস্য কাওসার চৌধুরী জানিয়েছেন, স্বামী বিদেশ থাকার সুযোগে তিনি যে অপরাধ করেছেন, তার জন্য এটি ‘কম শাস্তি’।

বাগেরহাটের মোল্লাহাটে বিয়েবহির্ভূত সর্ম্পকের অভিযোগ তুলে এক গৃহবধূকে প্রকাশ্যে জুতার মালা পরিয়ে লাঠিপেটা করা হয়েছে। এ ঘটনার ভিডিও ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে ফেসবুকে।

ওই নারীকে লাঞ্ছনা করার কথা স্বীকার করে স্থানীয় ইউপি সদস্য কাওসার চৌধুরী বলেন, স্বামী বিদেশ থাকার সুযোগে তিনি যে অপরাধ করেছেন, তার জন্য এটি ‘কম শাস্তি’।

লাঞ্ছিত ওই নারী নিউজবাংলাকে জানান, মারধরের পর তার টাকা ও গয়না ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে। সামাজিকভাবে তিনি হেয় হয়েছেন।

এ ঘটনা উপজেলার চুনখোলা ইউনিয়নের সিংগাতী গ্রামের।

ইউপি সদস্য কাওসার চৌধুরীসহ গ্রামের কয়েকজন লোক অভিযোগ করেন, বিভিন্ন লোকের সঙ্গে ওই নারীর বিয়েবর্হিভূত সম্পর্ক ছিল।

ইউপি সদস্য বলেন, ‘এগুলো আমাদের কাছে খারাপ লাগে। সোমবার রাতে নিজের মেয়ের শ্বশুরের সঙ্গে ওই নারীকে এক ঘরে পেয়ে তাদেরকে ধরা হয়। এরপর তার বিচার করা হয়।

‘কেবল জুতার মালা গলায় দিয়ে ও কঞ্চির লাঠি দিয়ে বাড়িয়ে লাঞ্ছিত করছি, তার বিচার আরও কঠিন হওয়া উচিত ছিল।’

ওই নারী বলেন, ‘আমার বাড়ির আশপাশের লোকজন আমাকে ধরে আমার সিঁড়ির কাছে নিয়ে আমার গলায় চেইন ছিল এক ভরি ওজনের, আট আনা ওজনের কানের দুল ও ৯৫ হাজার টাকা দামের একটি মোবাইল নিয়ে গেছে। কাওসার মেম্বার ও জানিক ছিল, এরা আমারে জুতার মালা দেছে ও কঞ্চি দিয়ে বাইড়াইছে।

‘আমি এর বিচার প্রশাসনের কাছে চাই। আর এই যে ভিডিও সব জায়গা ছড়াইছে, আমার মানসম্মান যা যাবার তা তো গেইছে। আমি এর সুষ্ঠু বিচার চাই।’

এ খবর পেয়ে সহকারী কমিশনার (ভূমি) অনিন্দ্য মন্ডল ও মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা রুনীয়া আক্তার ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

অনিন্দ্য মন্ডল নিউজবাংলাকে বলেন, 'ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই নারীকে পাওয়া যায়নি। শোনা গেছে তিনি ওই ঘটনার পর গ্রাম ছেড়েছেন।'

রুনীয়া আক্তার বলেন, ‘ওই নারীকে এলাকায় পাওয়া যায়‌নি। তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পা‌রি‌নি। স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে‌ছি। বিষয়‌টি আমরা গুরুত্ব দিয়ে দেখ‌ছি।’

মোল্লাহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সোমেন দাশ বলেন, ‘থানায় অভিযোগ পাইনি, পেলে ব্যবস্থা নেব।’

আরও পড়ুন:
একে-৪৭-এর চেয়ে বড় কী আছে আ.লীগ নেতার কাছে
ইউপি নির্বাচন: কেন্দ্রে যাচ্ছে ভোটের সরঞ্জাম
চতুর্থ ধাপে ৮৪০ ইউপি নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর
কালকিনিতে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষে আহত ২০
নৌকার অফিসে ‘ভাঙচুর-আগুন’, পেট্রোল বোমা উদ্ধারে মামলা

শেয়ার করুন

ছাত্রদল নেতার মৃত্যু: ছাত্রলীগ-যুবলীগের ৮ জনের নামে মামলা

ছাত্রদল নেতার মৃত্যু: ছাত্রলীগ-যুবলীগের ৮ জনের নামে মামলা

পাঁচবিবি পৌর ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হোসেন। ছবি: সংগৃহীত

বিএনপি নেতা ডালিম নিউজবাংলাকে জানান, যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা হঠাৎ এসে তার মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেয়। এ ঘটনায় নেতা-কর্মীদের নিয়ে মামলা করতে পাঁচবিবি থানায় যান। সেখান থেকে ফোনে ছাত্রদল নেতা ফারুককে পৌর পার্কে ডেকে নিয়ে মারধর করে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতা-কর্মীরা।

জয়পুরহাটের পাঁচবিবিতে ছাত্রদল নেতার মৃত্যুর ঘটনায় ছাত্রলীগ-যুবলীগের আট নেতা-কর্মীর নামে মামলা করেছেন নিহতের মা।

পাঁচবিবি থানায় বুধবার সন্ধ্যায় করা এই মামলায় আসামি করা হয়েছে অজ্ঞাতপরিচয় আরও আটজনকে।

এর আগে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক ছাত্রলীগ ও যুবলীগের চার নেতা-কর্মীকে এই মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

তারা হলেন মহীপুর হাজী মহাসীন সরকারি কলেজ শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান, কুসুম্বা ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা আরিফুল ইসলাম, যুবলীগ সদস্য আনিছুর রহমান ও মুজাহিদুল ইসলাম।

পাঁচবিবি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মৃত ফারুক হোসেনের মা বিলকিস বেগম এজাহারে লিখেছেন, ফোন করে ডেকে নিয়ে তার ছেলেকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মঙ্গলবার মধ্যরাতে মারা যান পাঁচবিবি পৌর ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক ফারুক হোসেন। তার বাড়ি পৌর শহরের দানেজপুর এলাকায়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের বরাতে ওসি পলাশ জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে উপজেলা যুবলীগের সদস্য আনিছুর রহমান শিপনের সঙ্গে বিএনপির আহ্বায়ক সাইফুল ইসলাম ডালিমের তর্ক হয়। এর জেরে শিপন ডালিমের মোটরসাইকেলে পুড়িয়ে দেন।

বিএনপি নেতা ডালিম নিউজবাংলাকে জানান, দলীয় কার্যালয়ে বসে তারা সন্ধ্যায় আলোচনা করছিলেন। সে সময় যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতা-কর্মীরা হঠাৎ এসে তার মোটরসাইকেল পুড়িয়ে দেয়। এ ঘটনায় নেতা-কর্মীদের নিয়ে মামলা করতে পাঁচবিবি থানায় যান। সেখান থেকে ফোনে ছাত্রদল নেতা ফারুককে পৌর পার্কে ডেকে নিয়ে মারধর করে ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতা-কর্মীরা।

ডালিম আরও জানান, ফারুককে তারা হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

অভিযোগের বিষয়ে পাঁচবিবি উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক মিন্নুর বলেন, ‘ফারুক হত্যার সঙ্গে যুবলীগ নেতা-কর্মীদের জড়িত থাকার যে অভিযোগ করা হয়েছে তা সত্য নয়।’

পাঁচবিবি উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ধীমান চন্দ্র ঘোষ বলেন, ‘ছাত্রলীগের কোনো নেতা-কর্মী হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকবে এটা বিশ্বাসযোগ্য নয়।’

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসক রাফসান জানি বলেন, ‘হাসপাতালে আনার আগেই ফারুকের মৃত্যু হয়েছে। তার শরীরে কোনো আঘাতের চিহ্ন পাওয়া যায়নি। তার পকেটে নাইট্রো গ্লিসারিনের একটি প্যাকেট পাওয়া গেছে। হার্ট অ্যাটাকে তার মৃত্যু হতে পারে। ময়নাতদন্তের পর মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।’

পাঁচবিবি থানার ওসি পলাশ জানান, বিএনপি নেতার মোটরসাইকেল পোড়ানোর ঘটনায় মামলা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
একে-৪৭-এর চেয়ে বড় কী আছে আ.লীগ নেতার কাছে
ইউপি নির্বাচন: কেন্দ্রে যাচ্ছে ভোটের সরঞ্জাম
চতুর্থ ধাপে ৮৪০ ইউপি নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর
কালকিনিতে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষে আহত ২০
নৌকার অফিসে ‘ভাঙচুর-আগুন’, পেট্রোল বোমা উদ্ধারে মামলা

শেয়ার করুন

ইয়াবা পাচারের দায়ে রোহিঙ্গা মা-ছেলের কারাদণ্ড

ইয়াবা পাচারের দায়ে রোহিঙ্গা মা-ছেলের কারাদণ্ড

২০১৬ সালের ২৮ জুলাই দুপুরে টেকনাফ পৌরসভার নাইট্যংপাড়ায় অভিযান চালায় বিজিবির একটি দল। সেখান থেকে ৯ লাখ ৯৯ হাজার টাকা মূল্যের ৩ হাজার ৩৩০ পিস ইয়াবাসহ আটক করা হয় রোহিঙ্গা মা-ছেলেকে।

কক্সবাজারে ইয়াবা পাচারের দায়ে এক রোহিঙ্গা নারী ও তার ছেলেকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। সেই সঙ্গে প্রত্যেককে ৫ হাজার টাকা করে অর্থদণ্ড, অনাদায়ে আরও এক মাস করে বিনাশ্রম কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

যুগ্ম জেলা ও দায়রা জজ-১ আদালতের বিচারক মাহমুদুল হাসান বুধবার দুপুরে এ রায় দেন।

আসামিদের মধ্যে মিয়ানমারের আকিয়াব জেলার মংডুর দলিয়াপাড়ার নুনু বেগমকে ছয় বছরের এবং তার ছেলে মোহাম্মদ ইউনুসকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

সহকারী পাবলিক প্রসিকিউটর (এপিপি) আবদুর রউফ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ২০১৬ সালের ২৮ জুলাই দুপুরে টেকনাফ পৌরসভার নাইট্যংপাড়ায় অভিযান চালায় বিজিবির একটি দল। সেখান থেকে ৯ লাখ ৯৯ হাজার টাকা মূল্যের ৩ হাজার ৩৩০ পিস ইয়াবাসহ আটক করা হয় আসামিদের।

তাদের নামে টেকনাফ থানায় মাদকের মামলা করেন ২ নম্বর বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের নায়েক সুবেদার গুরুপদ বিশ্বাস।

আরও পড়ুন:
একে-৪৭-এর চেয়ে বড় কী আছে আ.লীগ নেতার কাছে
ইউপি নির্বাচন: কেন্দ্রে যাচ্ছে ভোটের সরঞ্জাম
চতুর্থ ধাপে ৮৪০ ইউপি নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর
কালকিনিতে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষে আহত ২০
নৌকার অফিসে ‘ভাঙচুর-আগুন’, পেট্রোল বোমা উদ্ধারে মামলা

শেয়ার করুন

হামলায় ভাঙল ইউপি সদস্যের দুই পা

হামলায় ভাঙল ইউপি সদস্যের দুই পা

ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রুহুল আমিন শেখ। ছবি: নিউজবাংলা

সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রুহুল জানান, গত ১১ নভেম্বরের ইউপি নির্বাচনে তিনি সদস্য হিসেবে বিজয়ী হন। এ নির্বাচনে তিনি নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয় প্রতিপক্ষের লোকজন।

পিরোজপুর সদরে পুর্ব বিরোধের জেরে ইউনিয়ন পরিষদ সদস্যেকে তুলে নিয়ে মারধরের অভিযোগ উঠেছে। হামলা ভেঙে গেছে ওই ইউপি সদস্যের দুই পা।

সদর উপজেলার কদমতলা ইউনিয়নে বুধবার দুপুরে এই ঘটনা ঘটে। আহত রুহুল আমিন শেখ শিকদারমল্লিক ইউপির ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক।

পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আ. জা. মো. মাসুদুজ্জামান হামলার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রুহুল জানান, গত ১১ নভেম্বরের ইউপি নির্বাচনে তিনি সদস্য হিসেবে বিজয়ী হন। এ নির্বাচনে তিনি নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে কাজ করেন। এতে ক্ষিপ্ত হয় প্রতিপক্ষের লোকজন।

আমিন অভিযোগ করেন, বুধবার তিনি শিকদারমল্লিক ইউনিয়নের চালিতাখালী গ্রামে নিজ বাড়ি থেকে মোটরসাইকেলে সদরের দিকে যাচ্ছিলেন। পথে কদমতলা ইউনিয়নের ঝনঝনিয়াতলা এলাকায় মো. ফারুকসহ ২০ থেকে ২৫ জন লোক তার পথরোধ করে। পরে তাকে তুলে কিছুদূর নিয়ে জিআই পাইপ ও দেশীয় অস্ত্র দিয়ে মারধর করা হয়। পিটিয়ে তার দুই পা ভেঙে দেয়া হয়।

সদর হাসপাতালের চিকিৎসক তন্ময় মজুমদার জানান, হাসপাতালে আহত অবস্থায় রুহুলকে আনা হয়। তার দুই পা শক্ত কোনো বস্তুর আঘাতে ভেঙে গেছে। শরীরের বিভিন্ন স্থানে আঘাতের চিহ্নও আছে। তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

সদর থানার ওসি মাসুদুজ্জামান জানান, ঘটনাটি খতিয়ে দেখতে কদমতলা এলাকায় পুলিশ পাঠানো হয়েছে।

আরও পড়ুন:
একে-৪৭-এর চেয়ে বড় কী আছে আ.লীগ নেতার কাছে
ইউপি নির্বাচন: কেন্দ্রে যাচ্ছে ভোটের সরঞ্জাম
চতুর্থ ধাপে ৮৪০ ইউপি নির্বাচন ২৩ ডিসেম্বর
কালকিনিতে দুই চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে সংঘর্ষে আহত ২০
নৌকার অফিসে ‘ভাঙচুর-আগুন’, পেট্রোল বোমা উদ্ধারে মামলা

শেয়ার করুন