ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১৭৭

ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১৭৭

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে রাজধানীর একটি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে এক শিশু। ফাইল ছবি

কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছর ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ২৪ হাজার ১২০ জনের মধ্যে ছাড়পত্র পেয়েছেন ২৩ হাজার ৩০৪ জন। বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি ৭২২ জন।

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১৭৭ জন।

এ নিয়ে চলতি বছর হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ২৩ হাজার ৩০৪ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৯৪ জনের।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে বুধবার পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টা ডেঙ্গু আক্রান্তদের মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১৩১ জন। ঢাকার বাইরের হাসপাতালগুলোতে ভর্তি হয়েছে ৪৬ জন।

কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছর ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ২৪ হাজার ১২০ জন। এর মধ্যে শুরুর ছয় মাস রোগী ছিল ৭৬২ জন।

এ বছরের জুলাইয়ে ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়তে থাকে। ওই মাসে রোগী শনাক্ত হয়েছিল ২ হাজার ২৮৬ জন। জুলাইয়ে মারা যায় ১২ জন।

আগস্টে ডেঙ্গু রোগী ছিল ৭ হাজার ৬৯৮ জন। ওই মাসে মারা যায় ৩৪ জন। সেপ্টেম্বরে রোগীর সংখ্যা ছিল ৭ হাজার ৮৪১ জন। মাসটিতে মৃত্যু হয় ২৩ জনের।

অক্টোবরে ৫ হাজার ৪৫৪ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়। মাসটিতে মারা গেছে ২৩ জন।

চলতি মাসে তিন দিনে ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৪৬৫ জন। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে তিনজনের।

কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছর ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ২৪ হাজার ১২০ জনের মধ্যে ছাড়পত্র পেয়েছেন ২৩ হাজার ৩০৪ জন। বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি ৭২২ জন।

এদের মধ্যে ঢাকার ৪৬টি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৫৭০ ডেঙ্গু রোগী। রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) জানিয়েছে, ডেঙ্গু উপসর্গ নিয়ে চলতি বছর ৯৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৩০
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১৭৯ জন
ডেঙ্গু: হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৮৯
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১২৩ জন
ডেঙ্গু রোগী ২২ হাজার ছাড়াল

শেয়ার করুন

মন্তব্য

যুক্তরাজ্য ইতালি জার্মানিতে ওমিক্রনের হানা

যুক্তরাজ্য ইতালি জার্মানিতে ওমিক্রনের হানা

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনের খবরে উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে বিশ্বজুড়ে। ছবি: সংগৃহীত

দুই বছরের করোনা মহামারির কারণে বিপর্যস্ত অর্থনীতির চাকা যখন আবার সচল হচ্ছিল তখন নতুন ধরনের খবরে বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। আফ্রিকা অঞ্চলের দেশগুলোর ওপর আরোপ করা হচ্ছে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা। উড়তে থাকা পুঁজিবাজার ও জ্বালানি তেলের দামে পড়ছে ভাটার টান।

ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন। এই ধরনটি এবার শনাক্তের খবর দিয়েছে ইউরোপের তিন প্রভাবশালী দেশ যুক্তরাজ্য, জার্মানি ও ইতালি। ওমিক্রন ঠেকাতে আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলের দেশগুলোর ওপর আরও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে অনেক দেশ।

দুই বছরের করোনা মহামারির কারণে বিপর্যস্ত অর্থনীতির চাকা যখন আবার সচল হচ্ছিল তখন নতুন ধরনের খবরে বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ সৃষ্টি হয়েছে। আফ্রিকা অঞ্চলের দেশগুলোর ওপর আরোপ করা হচ্ছে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা। উড়তে থাকা পুঁজিবাজার ও জ্বালানি তেলের দামে পড়ছে ভাটার টান।

ওমিক্রন থেকে নিরাপদে থাকতে ভ্রমণ নিধেষাজ্ঞা আরও আঁটসাঁট করতে যাচ্ছে ইসরায়েল। দেশটির প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর থেকে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ১৪ দিনের নতুন বিধিনিষেধ অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। তাতে বলা হয়েছে, ইসরায়েলে কোনো বিদেশিকে ঢুকতে দেয়া হবে না।

কোভিডের জন্য দায়ী করোনাভাইরাস সার্স কভ টু-এর নতুন ধরন ‘ওমিক্রন’ নিয়ে উৎকণ্ঠা ছড়িয়ে পড়ছে দেশে দেশে। সতর্ক অবস্থানে আছে বাংলাদেশ, ভারত ও পাকিস্তানও।

বতসোয়ানায় প্রথম শনাক্ত হওয়া এই ভ্যারিয়েন্টের শুরুতে নাম ছিল ‘বি.১.১.৫২৯’ তবে আলোচনায় সুবিধার জন্য শুক্রবার বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এর নাম দেয় ‘ওমিক্রন’।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, স্পাইক প্রোটিনে ৩০ বারের বেশি মিউটেশনের মধ্য দিয়ে সার্স কভ টু ভাইরাসের নতুন ধরনটি তৈরি হয়েছে। সামগ্রিকভাবে এই ধরনটির মিউটেশন হয়েছে ৫০ বারের বেশি।

অত্যন্ত সংক্রামক ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের চেয়েও ওমিক্রনের মিউটেশন হয়েছে চার গুণ বেশি। ফলে এটি দ্রুত মানুষকে আক্রান্ত করতে সক্ষম বলে আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের।

এমন অবস্থায় ওমিক্রন রোধে আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলের দেশগুলোর ওপর আগেভাগেই ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেয়ার ঘোষণা দেয় যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলো। এই নিষেধাজ্ঞা সোমবার থেকে কার্যকর হওয়ার কথা ছিল। এর আগেই ইউরোপের কয়েকটি দেশে ঢুকে গেল ওমিক্রন।

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ স্থানীয় সময় শনিবার জানান, তাদের দেশে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনে সংক্রমিত হয়েছেন এমন দুজন ব্যক্তিকে শনাক্ত করা হয়েছে।

এমন খবরে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপের ঘোষণা দিয়েছেন যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন। যারা বিদেশ থেকে আসবেন, তাদের অবশ্যই করোনা টেস্ট করাতে বলা হয়েছে। মাস্ক পরায় ফের বাধ্যবাধকতা আনা হচ্ছে।

জনসন এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, ‘যুক্তরাজ্যে প্রবেশের দুই দিনের মধ্যে যে কাউকে পিসিআর টেস্ট করাতে হবে। রেজাল্ট নেগেটিভ না পাওয়া পর্যন্ত তাকে ব্যক্তিগতভাবে আইসোলেশনে থাকতে হবে।’

জার্মানির বাভারিয়ার রাজ্যের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ও ওমিক্রনে সংক্রমিত দুই ব্যক্তির খবর দিয়েছে। বলা হয়েছে, ওই দুই ব্যক্তি ২৪ নভেম্বর মিউনিখ বিমানবন্দর দিয়ে জার্মানিতে প্রবেশ করেছিলেন।

আর ইতালির ন্যাশনাল হেলথ ইনস্টিটিউট বলছে, মিলানে এক ব্যক্তির দেহে ওমক্রিন শনাক্ত হয়েছে। ওই ব্যক্তি মোজাম্বিক থেকে এসেছেন।

চেক রিপাবলিক কর্তৃপক্ষও জানিয়েছে, তাদের ওখানে এক ব্যক্তি ওমিক্রনে সংক্রমিত হয়ে থাকতে পারেন। তার পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। ওই ব্যক্তি নামিবিয়ায় সময় কাটিয়ে এসেছেন।

নতুন ধরনটি কতটা বিপজ্জনক?

সার্স কভ টু ভাইরাসের নতুন ধরনটি নিয়ে গবেষকদের উদ্বেগের মূল কারণ, এর অনেকবারের মিউটেশন। মিউটেশন হলো এমন এক অভিযোজন কৌশল, যার মাধ্যমে ভাইরাস বিরূপ বা নতুন পরিস্থিতিতেও অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে পারে।

বিজ্ঞানীরা ওমিক্রনের স্পাইক প্রোটিনে ৩২টি মিউটেশন খুঁজে পেয়েছেন। অন্যদিকে অত্যন্ত সংক্রামক হিসেবে বিবেচিত ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টে মিউটেশন হয়েছে মাত্র আটবার।

স্পাইক প্রোটিনের বেশি মিউটেশন মানেই ভাইরাসটি বেশি প্রাণঘাতী, এমন মনে করার কোনো কারণ নেই। তবে বিজ্ঞানীরা বলছেন, বহুবার মিউটেশনের কারণে ওমিক্রনের সঙ্গে মানুষের দেহের প্রতিরোধ ব্যবস্থার (ইমিউনিটি সিস্টেম) লড়াই করা কঠিন হতে পারে।

ওমিক্রনের স্পাইক প্রোটিন প্রচলিত করোনাভাইরাসের স্পাইক প্রোটিনের তুলনায় অনেকটা বদলে যাওয়ায় দেহের ইমিউনিটি সিস্টেম দ্রুত একে শনাক্ত করতে পারে না, ফলে এটি সংক্রমণের হার বাড়াতে পারে। যেকোনো করোনাভাইরাস এদের স্পাইকের সাহায্যেই শ্বাসতন্ত্রের কোষে যুক্ত হয়ে কোষের ভেতরে প্রবেশ করে।

প্রাথমিক গবেষণা অনুসারে, নতুন ভ্যারিয়েন্টটি টিকার কার্যক্ষমতা ৪০ শতাংশ পর্যন্ত কমিয়ে দিতে সক্ষম।

যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নতুন ভ্যারিয়েন্টের দুটি মিউটেশন- আর ২০৩কে এবং জি ২০৪আর ভাইরাসটি দ্রুত প্রতিলিপি তৈরি করতে সক্ষম। এ ছাড়া তিনটি মিউটেশন- এইচ৬৫৫ওয়াই, এন ৬৭৯কে এবং পি ৬৮১এইচ ভাইরাসটিকে আরও সহজে মানব কোষে প্রবেশে সাহায্য করে। তারা বলছেন, শেষ দুটি মিউটেশনের একসঙ্গে উপস্থিতি বিরল ঘটনা এবং এর ফলে ওমিক্রন টিকা প্রতিরোধী হয়ে উঠেছে।

অস্ট্রিয়ার ভিয়েনার ইনস্টিটিউট অফ মলিকুলার বায়োটেকনোলজির আণবিক জীববিজ্ঞানী ডা. উলরিচ এলিংয়ের মতে, প্রাথমিক লক্ষণ থেকে মনে হচ্ছে করোনার নতুন রূপটি ডেল্টার চেয়ে ৫০০ শতাংশ বেশি সংক্রামক হতে পারে।

অবশ্য নতুন ভ্যারিয়েন্টটি সার্স কভ টুর আগের ধরনগুলোর তুলনায় বেশি প্রাণঘাতী- এমন কোনো প্রমাণ এখনও মেলেনি। তবে এটি দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার সক্ষমতার কারণে স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে নতুন করে চাপে ফেলতে পারে।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৩০
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১৭৯ জন
ডেঙ্গু: হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৮৯
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১২৩ জন
ডেঙ্গু রোগী ২২ হাজার ছাড়াল

শেয়ার করুন

ফুলকপি কেন খাবেন

ফুলকপি কেন খাবেন

ফুলকপির মতো উচ্চ ফাইবারের সবজি ক্যানসার ও ডায়াবেটিস রোধেও কাজ করে। এতে প্রচুর পরিমাণে গ্লুকোজিনোলেটস এবং ইসোথিওসায়ানেটস নামক দুই ধরনের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে, যা ক্যানসার সেল তৈরি হতে বাধা দেয়। এ ছাড়া এটি হৃদরোগ প্রতিরোধেও সহায়ক। বিভিন্ন ক্রনিক রোগ প্রতিরোধে ফুলকপির জুড়ি নেই।

শীত মৌসুমের জনপ্রিয় সবজি হলো ফুলকপি। এই সবজিটি স্বাদে যেমন, গুণেও তেমন অনন্য। এতে থাকা অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং সাইটো নিউট্রিয়েন্ট ক্যানসার প্রতিরোধ করে। এ ছাড়া হেলথলাইন ডটকমের প্রতিবেদন থেকে ফুলকপির নানা রকম উপকারিতার বিষয়ে জানা যায়। চলুন দেখে নেয়া যাক-

পুষ্টি উপাদান

ফুলকপিতে ক্যালরির মাত্রা কম থাকলেও প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন রয়েছে। এক কাপ ফুলকপিতে প্রায় ৩ গ্রাম ফাইবার, ৭৭ শতাংশ ভিটামিন সি, ২০ শতাংশ ভিটামিন কে, ১১ শতাংশ ভিটামিন বি৬, ১৪ শতাংশ ফোলেট, ৯ শতাংশ পটাশিয়াম, ৮ শতাংশ ম্যাঙ্গানিজসহ যথেষ্ট মিনারেল থাকে।

বলা যায়, একজন মানুষের সুস্থ থাকার জন্য যেসব পুষ্টি উপাদান প্রয়োজন এর প্রায় সবকিছুই ফুলকপিতে পাওয়া যায়।

ফুলকপি কেন খাবেন
ফুলকপিতে রয়েছে ফাইবার, যা ক্যানসার প্রতিরোধে সহায়ক। ছবি: সংগৃহীত

ফাইবার

ফুলকপিতে পর্যাপ্ত পরিমাণ ফাইবার পাওয়া যায়, যা শরীরের সার্বিক সুস্থতার জন্য সহায়ক। এক কাপ ফুলকপিতে প্রায় ৩ গ্রাম ফাইবার থাকে, যা একজন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের দৈনিক চাহিদার ১০ শতাংশ। ফাইবার দেহের উপকারী ব্যাকটেরিয়াদের খাদ্য জোগান দেয়। ফলে প্রদাহ ও হজমশক্তিতে উপকার পাওয়া যায়। কোষ্ঠকাঠিন্য দূর হয়।

ক্যানসার ও ডায়াবেটিস রোধ

গবেষণায় জানা যায়, ফুলকপির মতো উচ্চ ফাইবারের সবজি ক্যানসার ও ডায়াবেটিস রোধেও কাজ করে। এতে প্রচুর পরিমাণে গ্লুকোজিনোলেটস এবং ইসোথিওসায়ানেটস নামক দুই ধরনের অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট থাকে, যা ক্যানসার সেল তৈরি হতে বাধা দেয়। এ ছাড়া এটি হৃদরোগ প্রতিরোধেও সহায়ক। বিভিন্ন ক্রনিক রোগ প্রতিরোধে ফুলকপির জুড়ি নেই।

ওজন কমায়

ফুলকপিতে ওজন কমাতে সহায়ক এমন অনেক উপাদান রয়েছে। প্রথমত, এতে খুবই স্বল্পমাত্রায় ক্যালরি থাকে, ফলে পেট ভরে খেলেও ওজন বাড়ার আশঙ্কা থাকে না। এটি ভাত এবং গমের মতো উচ্চ ক্যালরিসম্পন্ন খাবারের বিকল্প হিসেবেও খাওয়া যায়।

দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়

ফুলকপিতে ভিটামিন এ থাকে। চোখের যত্নে সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন এই ভিটামিন। তাই দৃষ্টিশক্তি বাড়াতে এবং চোখের বিভিন্ন সমস্যা রোধে ফুলকপি কার্যকর।

ত্বক ও চুল ভালো রাখে

শীতকালে ত্বক খসখসে হয়ে যায়। চুলের আঠালো ভাব এবং খুসকি হওয়াও আরেকটি সমস্যা, আর এই দুটি সমস্যা থেকেই মুক্ত থাকতে সহায়তা করে ফুলকপি। কেননা এতে থাকা বিভিন্ন ভিটামিন ও মিনারেল উপাদান চুল ও ত্বক মসৃণ রাখে।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৩০
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১৭৯ জন
ডেঙ্গু: হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৮৯
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১২৩ জন
ডেঙ্গু রোগী ২২ হাজার ছাড়াল

শেয়ার করুন

যুক্তরাজ্যে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনে শনাক্ত ২

যুক্তরাজ্যে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রনে শনাক্ত ২

স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ বলেন, ‘গত রাতে যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা সংস্থা আমার সঙ্গে যোগাযোগ করে। তারা দেশে দুই জনের শরীরে ওমিক্রন শনাক্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।’

যুক্তরাজ্যে দুইজনের শরীরে করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। এরা সম্প্রতি সাউথ আফ্রিকায় ভ্রমণের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন।

শনিবার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্যমন্ত্রী সাজিদ জাভিদ।

এদিন বার্তাসংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘গত রাতে যুক্তরাজ্যের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা সংস্থা আমার সঙ্গে যোগাযোগ করে। তারা দেশে দুই জনের শরীরে ওমিক্রন শনাক্ত হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছে।’

আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চল থেকে সম্প্রতি ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ‘বি.১.১.৫২৯’ নাম দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। এখন থেকে এই ধরনটিকে ‘ওমিক্রন’ নামে ডাকা হবে। বলা হচ্ছে, করোনার এই ধরনটি খুবই উদ্বেগের ।

এই ধরন কতটা প্রাণঘাতী ও সংক্রামক সেসব জানতে কাজ করছেন বিজ্ঞানীরা। এর আগেই আফ্রিকার দেশগুলোর ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে পশ্চিমা দেশগুলো।

বিভিন্ন প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কোভিড-১৯-এর এখন পর্যন্ত যতগুলো ধরন আছে তার মধ্যে ওমিক্রন সবচেয়ে জটিল। বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ ছড়ানো ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের মতোই।

নতুন ধরনটি সাউথ আফ্রিকায় প্রথম শনাক্ত হয় বলে ২৪ নভেম্বর জানায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। বতসোয়ানা, বেলজিয়াম, হংকং ও ইসরায়েলেও এই ধরন শনাক্তের তথ্য পাওয়া গেছে।

ওমিক্রনের ভয়াবহতার শঙ্কায় আফ্রিকার দক্ষিণাঞ্চলীয় দেশগুলোর সঙ্গে এরই মধ্যে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে অনেক দেশ।

সাউথ আফ্রিকা, নামিবিয়া, জিম্বাবুয়ে, বতসোয়ানা, লেসেথোর মতো দেশগুলোর নাগরিকের ওপর ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাজ্য। তবে যুক্তরাজ্য বা আয়ারল্যান্ডের নাগরিকদের ক্ষেত্রে এ নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে না।

আফ্রিকার এসব দেশের সঙ্গে বিমান যোগাযোগ বন্ধের ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলো। এটা কার্যকর হবে সোমবার থেকে।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৩০
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১৭৯ জন
ডেঙ্গু: হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৮৯
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১২৩ জন
ডেঙ্গু রোগী ২২ হাজার ছাড়াল

শেয়ার করুন

দেশে করোনায় দুইজনের মৃত্যু

দেশে করোনায় দুইজনের মৃত্যু

গত ২৪ ঘণ্টায় ৮৩৬টি ল্যাবে ১৩ হাজার ৪৬২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষা বিবেচনায় রোগী শনাক্তের হার ১ দশমিক ১ শতাংশ।

দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। আগের দিন এই মৃত্যুর সংখ্যা ছিল তিনজন।

এ সময়ে সংক্রমণ ধরা পড়েছে ১৫৫ জনের শরীরে। যা আগের দিনের চেয়ে কম।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে শনিবার বিকেলে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

দেশে এ পর্যন্ত করোনা শনাক্ত হয়েছে ১৫ লাখ ৭৫ হাজার ৫৭৯ জনের দেহে। যার মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ৯৭৫ জনের।

গত ২৪ ঘণ্টায় ৮৩৬টি ল্যাবে ১৩ হাজার ৪৬২টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষা বিবেচনায় রোগী শনাক্তের হার ১ দশমিক ১ শতাংশ।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এক দিনে মারা যাওয়া ব্যক্তিদের একজন পুরুষ ও একজন নারী। এদের একজনের বয়স ত্রিশের কোটায়, আরেকজন ষাটোর্ধ্ব।

তারা দুইজনই ঢাকার বাসিন্দা। ঢাকা ছাড়া সব বিভাগে এদিন করোনায় মৃত্যু শূন্য ছিল।

অবশ্য নতুন করে করোনা নিয়ে সতর্ক করেছে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। বিশ্বে ভাইরাসটির নতুন ধরন ওমিক্রন শনাক্ত হওয়ার পর থেকে আফ্রিকার সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করতে শুরু করেছে অনেক কয়েকটি দেশ।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও নতুন ধরন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

রোববার ভাইরাসটির নতুন ধরন নিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক আফ্রিকার সঙ্গে বাংলাদেশের যোগাযোগ বন্ধ করার কথা জানিয়েছেন।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৩০
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১৭৯ জন
ডেঙ্গু: হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৮৯
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১২৩ জন
ডেঙ্গু রোগী ২২ হাজার ছাড়াল

শেয়ার করুন

২৭ হাজার ছাড়াল ডেঙ্গু রোগী

২৭ হাজার ছাড়াল ডেঙ্গু রোগী

রাজধানীর হলি ফ্যামিলি হাসপাতালে ভর্তি ডেঙ্গু রোগী। ছবি: সাইফুল ইসলাম

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে নতুন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছে ৭৮ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ৫৭ এবং ঢাকার বাইরে ৩০ জন ভর্তি হন। 

এডিস মশাবাহিত রোগ ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে ৭৮ জন নতুন রোগী ভর্তি হয়েছে।

এর মধ্য দিয়ে চলতি বছরে ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৭ হাজার ৪ জনে। এ সময়ে ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে প্রাণ হারিয়েছে ৯৮ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে শনিবার পাঠানো বিবৃতিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালে নতুন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছে ৭৮ জন। এর মধ্যে ঢাকায় ৫৭ এবং ঢাকার বাইরে ৩০ জন ভর্তি হন।

বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়, বর্তমানে দেশের বিভিন্ন সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ৪২৮ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি আছে। এর মধ্যে ঢাকার ৪৬টি সরকারি ও বেসরকারি হাসপাতালে ৩২০ এবং অন্যান্য বিভাগে ১০৮ রোগী ভর্তি রয়েছে।

এ বছর এখন পর্যন্ত বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২৭ হাজার ৪ জন। হাসপাতাল থেকে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছে ২৬ হাজার ৪৭৮ জন রোগী।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৩০
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১৭৯ জন
ডেঙ্গু: হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৮৯
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১২৩ জন
ডেঙ্গু রোগী ২২ হাজার ছাড়াল

শেয়ার করুন

খালেদার পরিপাকতন্ত্রে রক্তক্ষরণ হচ্ছে: ফখরুল

খালেদার পরিপাকতন্ত্রে রক্তক্ষরণ হচ্ছে: ফখরুল

হাসপাতালে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। ফাইল ছবি

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘এখানে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার যে অসুখ, সেই অসুখটা হচ্ছে প্রধানত তার পরিপাকতন্ত্রে। তার অনেক অসুখ। এখন যেটা তার জীবনকে হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছে, সেটা হচ্ছে তার পরিপাকতন্ত্র থেকে যে রক্তক্ষরণ হচ্ছে।’

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার পরিপাকতন্ত্রে রক্তক্ষরণ হচ্ছে জানিয়ে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, সরকার তাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিয়েছে।

তিনি জানান, খালেদা জিয়ার রোগ নির্ণয় ও চিকিৎসার জন্য পর্যাপ্ত প্রযুক্তি নেই বলেই দিন দিন তার অবস্থা খারাপ হচ্ছে। অতি দ্রুত তাকে বিদেশে নেয়া প্রয়োজন।

ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) শনিবার শহীদ ডা. মিলন দিবসের আলোচনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে নব্বইয়ের ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য আয়োজন করে এ আলোচনা সভার।

এতে দেয়া বক্তব্যে ফখরুল বলেন, ‘এখানে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার যে অসুখ, সেই অসুখটা হচ্ছে প্রধানত তার পরিপাকতন্ত্রে। তার অনেক অসুখ। এখন যেটা তার জীবনকে হুমকির মুখে ফেলে দিয়েছে, সেটা হচ্ছে তার পরিপাকতন্ত্র থেকে যে রক্তক্ষরণ হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘এখন ঠিক কোন জায়গায় তার রক্তপাত হচ্ছে, এটাকে বের করার জন্যে আমাদের ডাক্তাররা, বাংলাদেশের শ্রেষ্ঠ ডাক্তার তারা, গত কয়েক দিন ধরে তারা বিভিন্ন রকম কাজ করছেন। চিকিৎসার যে পদ্ধতি আছে, সেই পদ্ধতিতে তারা করেছেন, কিন্তু একটা জায়গায় এসে তারা এগোতে পারছেন না।

‘কারণ আর সেই ধরনের কোনো টেকনোলজি বাংলাদেশে নাই, যে টেকনোলজি দিয়ে তারা সঠিক জায়গায় পৌঁছাতে পারেন, যে কারণে ডাক্তাররা বারবার বলছেন যে, তাকে একটা অ্যাডভান্স সেন্টারে নেয়া দরকার যেখানে এই ডিভাইসগুলো আছে, এই টেকনোলজিগুলো আছে, সেই যন্ত্রপাতিগুলো আছে। সেখানে গেলে তার যে সঠিক রোগ, সেই রোগের জায়গাটা তারা ধরতে পারেন।’

খালেদা জিয়ার অসুস্থতা নিয়ে সরকারের মন্ত্রীদের বক্তব্যের সমালোচনা করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘দুর্ভাগ্যের ব্যাপার যে, আমাদের দেশে যারা সরকারি দলের রাজনীতি করছেন, তাদের ন্যূনতম রাজনৈতিক শিষ্টাচার তো নেই, তাদের মানবিক বোধ তো নেই। আর নিজের সম্পর্কে তাদের এত বেশি দাম্ভিকতা যে, তারা যেকোনো ব্যক্তি সম্পর্কে, বিশেষ করে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া সম্পর্কে কটূক্তি করতে এতটুকু দ্বিধা করেন না।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘তারা একবারও মনে করেন না যে, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া হচ্ছেন সেই মহিয়সী নারী যিনি ১৯৭১ সালে তার স্বামী যখন স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়েছিলেন, তখন তার শিশুপুত্রকে হাতে ধরে পালিয়ে ঢাকায় এসেছিলেন এবং সেখানে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হয়ে ক্যান্টনমেন্টের কারাগারে ছিলেন। অর্থাৎ দেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে তার অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ছিল।’

স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলনে খালেদা জিয়ার ভূমিকা তুলে ধরেন ফখরুল বলেন, ‘দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের প্রতীক; স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বের প্রতীক।’

সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আজকে সব শ্রেণির মানুষকে, সব পেশার মানুষকে, সমস্ত রাজনৈতিক শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে। কারণ আমি আগেই বলেছি, স্বৈরাচার আর ফ্যাসিবাদ এক নয়। এই ফ্যাসিবাদ আরও ভয়ংকর। ইতিমধ্যে আমাদের সকল অর্জন তারা ধ্বংস করে দিয়েছে।

‘ইতিমধ্যে আমরা স্বাধীনতার যে স্বপ্ন দেখেছিলাম, যে আশা-আকাঙ্ক্ষা ছিল, তা ধূলিসাৎ করে দিয়েছে। ইতিমধ্যে আমাদের নতুন প্রজন্মের যে সম্ভাবনা আছে, তাকে ধূলিসাৎ করে দিয়েছে, অর্থনীতিকে ধ্বংস করে দিয়েছে, স্বাস্থ্যব্যবস্থাকে ধ্বংস করে দিয়েছে তারা। আসুন গণতন্ত্রকে রক্ষা করার জন্য, দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকে রক্ষা করার জন্য দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্ত করে তাকে বিদেশে চিকিৎসার জন্য পাঠাতে আমরা সকলে ঐক্যবদ্ধ হই।’

শারীরিক বিভিন্ন জটিলতা নিয়ে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) ভর্তি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

সাবেক এ প্রধানমন্ত্রী জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে আছেন জানিয়ে তাকে দ্রুত বিদেশ নিতে সরকারের প্রতি জোর দাবি জানাচ্ছেন বিএনপি নেতারা।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৩০
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১৭৯ জন
ডেঙ্গু: হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৮৯
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১২৩ জন
ডেঙ্গু রোগী ২২ হাজার ছাড়াল

শেয়ার করুন

সারা দিন অফিস করেও ফিট থাকার উপায়

সারা দিন অফিস করেও ফিট থাকার উপায়

অনেকেরই কাজের মধ্যে হালকা স্ন্যাকস খাওয়ার অভ্যাস আছে। এ সময় চিপস, চকলেট বা ফাস্টফুড খাওয়া বাদ দিন। এর পরিবর্তে বিভিন্ন ফল এবং লো ফ্যাট খাবার খান।

ব্যস্ত জীবনে দিনের বেশির ভাগ সময়টাই কেটে যায় অফিসে। কাজে ডুবে থাকার কারণে শরীর ও স্বাস্থ্যের দিকে নজর দেয়ারও সময় থাকে না। ফলে অচিরেই নানা অসুখ-বিসুখে জর্জরিত হয়ে যেতে হয়। বয়স বাড়ার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ে অসুস্থতা। এসব সমস্যা থেকে মুক্তির একমাত্র উপায় হলো- ফিট থাকা। আর ফিট থাকার জন্য প্রয়োজন ব্যায়াম।

মন্সটার ডটকমের প্রতিবেদন থেকে জানা যায়, গড়পড়তা ব্যায়ামের বাইরেও শরীর ফিট রাখার কিছু উপায় আছে। চলুন দেখে নিই-

ঠিকমতো খাবার গ্রহণ

ছুটির দিন বাদে সপ্তাহের প্রতিটি দিনই সকাল মানে অফিস যাওয়ার তাড়া। আর তাড়াহুড়া করতে গিয়ে অনেকেই শরীরে কতটুকু খাবারের প্রয়োজন সেদিকে নজর দেন না। অথচ খাবারের দিক দিয়ে দিনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো সকালের খাবার। এই খাবারই আপনার পুরো দিনের কাজের শক্তি জোগাবে। তাই খাবারে অবহেলা করবেন না। অন্যান্য সময়ের খাবারগুলোও ঠিকমতো গ্রহণ করুন।

বিরতি

একটানা কাজ করবেন না। এটি শরীরের পাশাপাশি মানসিকভাবেও ক্ষতি করে। কাজের মধ্যে চেষ্টা করুন এক ঘণ্টা পরপর যেন অন্তত ১৫ মিনিট বিরতি নেয়ার। যতটুকু সম্ভব হাঁটতে চেষ্টা করুন। ফোনে কথার বলার সময়ও এক জায়গায় দাঁড়িয়ে থাকবেন না।

বাইরের খাবারে না

বাইরে এটা-ওটা খাওয়ার অভ্যাস থাকলে ত্যাগ করুন। বাসা থেকে খাবার নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করুন। যদি এতে সমস্যা হয় তবে বাইরে যা খাচ্ছেন সেগুলো স্বাস্থ্যকর কি না সেদিকে খেয়াল রাখুন। রাস্তার হাবিজাবি খাবেন না।

হালকা ব্যায়াম

অনেক ব্যায়াম আছে যা বসে থেকেও করা যায়। এর মধ্যে স্ট্রেচিং অন্যতম। ডেস্কে বসে থেকেই কাজের ফাঁকে সেগুলো করতে পারেন। বসে বসে কোন কোন ব্যায়াম করা যায় তা জেনে নিন।

পর্যাপ্ত পানি পান

অনেকেরই কাজের মধ্যে হালকা স্ন্যাকস খাওয়ার অভ্যাস আছে। এ সময় চিপস, চকলেট বা ফাস্টফুড খাওয়া বাদ দিন। এর পরবর্তে বিভিন্ন ফল এবং লো ফ্যাট খাবার খান। সবচেয়ে জরুরি হলো- পরিমাণমতো পানি খাওয়া।

ফেরার পথে

অফিস শেষে সঙ্গে সঙ্গে গাড়িতে উঠে যাবেন না। কিছুক্ষণ হাঁটুন। সাইকেলে যাতায়াত করতে পারলে সবচেয়ে ভালো। যদি অফিসের গাড়িতে থাকেন, তাহলে গন্তব্যের আগেই নেমে যান। বাকি পথ হেঁটে ফিরুন। মাঝেমধ্যে লিফট ব্যবহার না করে সিঁড়ি দিয়ে ওঠা-নামা করুন।

আরও পড়ুন:
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৩০
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১৭৯ জন
ডেঙ্গু: হাসপাতালে ভর্তি আরও ১৮৯
ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে আরও ১২৩ জন
ডেঙ্গু রোগী ২২ হাজার ছাড়াল

শেয়ার করুন