সিলেটে শুরু হচ্ছে প্রি-পেইড গ্যাসের সেবা

সিলেটে শুরু হচ্ছে প্রি-পেইড গ্যাসের সেবা

সিলেটে গৃহস্থালী পর্যায়ের প্রি-পেইড মিটারের আওতায় আসছেন গ্যাসের গ্রাহকরা। ছবি: নিউজবাংলা

জেজিটিডিএসএল সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯ সালে এ ব্যাপারে একটি উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা (ডিপিপি) মন্ত্রণালয়ে জমা দেয় জালালাবাদ গ্যাস কর্তৃপক্ষ। প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয় ১১৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। যাচাই-বাছাই শেষে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে প্রকল্পটি অনুমোদন দেয় মন্ত্রণালয়।

সিলেটে গৃহস্থালি পর্যায়ের প্রি-পেইড মিটারের আওতায় আসছেন গ্যাসের গ্রাহকরা। এতে কমবে গ্যাসের অপচয়, দিতে হবে না বাড়তি বিল।

গ্যাসের প্রি-পেইড মিটারের জন্য জালালাবাদ গ্যাস ট্রান্সমিশন অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেম লিমিটেডের (জেজিটিডিএসএল) পক্ষ থেকে প্রায় ১২০ কোটি টাকার একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এর মধ্যে কাজ শুরুর জন্য দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে।

আগামী মার্চের মধ্যে এই প্রকল্পের কাজ শুরু করার আশাবাদ ব্যক্ত করেছেন সংশ্লিষ্টরা।

সিলেটে আবাসিক পর্যায়ে গ্রাহকদের প্রি-পেইড মিটারের আওতায় নিয়ে আসার এটিই প্রথম উদ্যোগ। প্রাথমিক অবস্থায় সিলেটের ৫০ হাজার গ্রাহককে প্রি-পেইড মিটারের আওতায় নিয়ে আসা হবে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, অপ্রয়োজনে গ্যাসের চুলা জ্বালিয়ে রাখার কারণে গ্যাসের অপচয় হয়। তা ছাড়া বারবার গ্যাসের দাম বাড়ার কারণে গ্রাহকরা দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন। এই দুই কারণে মূলত গ্রাহক ও প্রতিষ্ঠান দুই পক্ষই ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন। এ অবস্থায় গৃহস্থালি পর্যায়ে গ্যাসের অপচয় রোধ এবং গ্যাসের কার্যকর ব্যবহারের লক্ষ্যে সিলেটে প্রি-পেইড গ্যাস মিটার স্থাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

সিলেটে শুরু হচ্ছে প্রি-পেইড গ্যাসের সেবা

জেজিটিডিএসএল-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী শোয়েব আহমদ মতিন বলেন, ‘আমরা দরপত্র আহ্বান করেছি। দরপত্র প্রক্রিয়া শেষ হলে আগামী মার্চের মধ্যে প্রকল্পের মাঠপর্যায়ের কাজ শুরু করতে পারব বলে আশা করছি।’

তিনি আরও জানান, এই প্রকল্প বাস্তবায়িত হলে ক্রেতাদের মধ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি পাবে। অনেককে ম্যাচের কাঠি বাঁচাতে অপ্রয়োজনে গ্যাসের চুলা জ্বালিয়ে রাখেন। প্রি-পেইড মিটার যুক্ত হলে তারা এ কাজ থেকে বিরত থাকবেন। আবার অনেক গ্রাহক আছেন সারা মাস গ্যাস ব্যবহার না করলেও মাস শেষে নির্ধারিত বিল পরিশোধ করতে হয়। তাদের এখন থেকে আর গ্যাস না জ্বালালে বিল দিতে হবে না। যতটুক গ্যাস ব্যবহার করবেন কেবল ততটুকুর বিল দিতে হবে।

জেজিটিডিএসএল সূত্রে জানা গেছে, ২০১৯ সালে এ ব্যাপারে একটি উন্নয়ন প্রকল্প প্রস্তাবনা (ডিপিপি) মন্ত্রণালয়ে জমা দেয় জালালাবাদ গ্যাস কর্তৃপক্ষ। প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয় ১১৮ কোটি ৫৫ লাখ টাকা। যাচাই-বাছাই শেষে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে প্রকল্পটি অনুমোদন দেয় মন্ত্রণালয়।

জেজিটিডিএসএল-এর কর্মকর্তারা জানান, এই প্রকল্প ২০২২ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়ন করতে হবে। এটি বাস্তবায়ন হলে প্রতিটি আবাসিক গ্রাহকের মাসিক গড় গ্যাস ব্যবহার ৬৬ ঘনমিটার থেকে ৪০ ঘনমিটারে নেমে আসবে। ফলে গ্রাহকপ্রতি গ্যাস সাশ্রয় হবে গড়ে ২৬ ঘনমিটার। গ্যাস বিতরণ লাইনের লিকেজজনিত অপচয়ও রোধ হবে।

বর্তমানে জালালাবাদ গ্যাসের প্রায় ৩ লাখ আবাসিক গ্রাহক রয়েছেন। প্রথম অবস্থায় ৫০ হাজার গ্রাহকের মধ্যে প্রি-পেইড মিটারের আওতায় নিয়ে আসা হবে। পর্যায়ক্রমে বাকিদেরও মিটারের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

এ প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে গ্যাসের কার্যকর সরবরাহ ও ব্যবহারের মাধ্যমে গ্যাসের অপচয় রোধ করা যাবে বলে মনে করেন জালালাবাদ গ্যাসের কর্মকর্তারা। সাশ্রয়কৃত গ্যাস নতুন শিল্পকারখানায় ব্যবহার করা সম্ভব হবে বলেও মনে করেন তারা।

এই প্রকল্প বাস্তায়নে গ্রাহকদের সহযোগিতা চেয়ে সম্প্রতি সিলেটের স্থানীয় পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে জালালাবাদ গ্যাস।

এতে বলা হয়, মূল্যবান জাতীয় সম্পদ প্রাকৃতিক গ্যাসের অপচয়রোধ, সাশ্রয়ী, দক্ষ ও টেকসই ব্যবহার নিশ্চিতকরণের লক্ষ্যে সিলেট সিটি করপোরেশন ও তৎসংলগ্ন এলাকায় সংযোগকৃত আবাসিক গ্রাহকদের প্রি-পেইড গ্যাস মিটার স্থাপনের জন্য একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এই প্রকল্পের আওতায় প্রাথমিকভাবে ৫০ হাজার প্রি-পেইড গ্যাস মিটার স্থাপন করা হবে।

প্রি-পেইড মিটার স্থাপনের লক্ষ্যে শিগগিরই মাঠপর্যায়ে জরিপ কাজ শুরু করা হবে। আগামী মার্চ ২০২২ (সম্ভাব্য) থেকে পর্যায়ক্রমে প্রি-পেইড মিটার গ্রাহক আঙিনায় স্থাপন করা হবে।

প্রকল্পের কাজের জন্য জালালাবাদ গ্যাসের পরিচয়পত্রসহ কর্মীরা গ্রাহকদের বাসাবাড়িতে যাবেন। তাদের সহযোগিতা করতে বিজ্ঞপ্তিতে আহ্বান জানানো হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, প্রকল্পের আওতায় তথ্যকেন্দ্র, হারানো তথ্য পুনরুদ্ধার কেন্দ্র ও অনলাইন সিস্টেমের প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি এবং সফটওয়্যার স্থাপন করা হবে।

প্রকল্প পরিচালক লিটন চন্দ্র নন্দী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রথমে নগরের শাহজালাল উপশহর এলাকার গ্রাহকদের এ সেবার আওতায় নিয়ে আসা হবে। পরবর্তী সময়ে পুরো সিলেট নগরই প্রি-পেইড মিটারের আওতায় চলে আসবে। দুই চুলার গ্যাসের জন্য এখন প্রতি মাসে গ্রাহক খরচ করছে ৯৭৫ টাকা। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে ছোট পরিবারের একজন গ্রাহক এক হাজার টাকায় তিন মাস গ্যাস ব্যবহার করতে পারবেন।’

আরও পড়ুন:
আবাসিকে গ্যাস সংযোগ দিতে নির্দেশ কেন নয়: হাইকোর্ট
শক্তি বাড়িয়ে ছন্দে ফিরছে বাপেক্স
ভোলায় নতুন আরও তিন গ্যাস কূপ
গ্যাস সংকট কাটাতে দেশীয় উৎপাদন বাড়ানোর চিন্তা
বরগুনায় সম্ভাব্য গ্যাসক্ষেত্র থেকে নমুনা সংগ্রহ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

আগুনে পুড়ল বস্তির ২০০ ঘর

আগুনে পুড়ল বস্তির ২০০ ঘর

শনিবার ভোরের দিকে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের আটটি ইউনিটের চেষ্টায় সকাল ৬টা ১৫ মিনিটে নিয়ন্ত্রণে আসে বলে জানান টঙ্গী ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার ইকবাল হাসান। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। আমরা এখন ডাম্পিংয়ের কাজ করছি।’

গাজীপুরের টঙ্গী বাজারের পার্শ্ববর্তী একটি বস্তিতে আগুনে দুই শতাধিক ঘর পুড়ে গেছে। আগুন নিয়ন্ত্রণে আসার পর চলছে ডাম্পিংয়ের কাজ।

শনিবার ভোরের দিকে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে ফায়ার সার্ভিসের আটটি ইউনিটের চেষ্টায় সকাল ৬টা ১৫ মিনিটে নিয়ন্ত্রণে আসে বলে জানান টঙ্গী ফায়ার স্টেশনের সিনিয়র স্টেশন অফিসার ইকবাল হাসান। নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে। আমরা এখন ডাম্পিংয়ের কাজ করছি।’

প্রাথমিক ক্ষয়ক্ষতির তথ্য দিয়ে ফায়ার সার্ভিসের এই কর্মকর্তা জানান, বস্তিটিতে ৪০০টির মতো ঘর। এর মধ্যে ২০০ এর বেশি ঘর পুড়ে গেছে।

বিস্তারিত আসছে...

আরও পড়ুন:
আবাসিকে গ্যাস সংযোগ দিতে নির্দেশ কেন নয়: হাইকোর্ট
শক্তি বাড়িয়ে ছন্দে ফিরছে বাপেক্স
ভোলায় নতুন আরও তিন গ্যাস কূপ
গ্যাস সংকট কাটাতে দেশীয় উৎপাদন বাড়ানোর চিন্তা
বরগুনায় সম্ভাব্য গ্যাসক্ষেত্র থেকে নমুনা সংগ্রহ

শেয়ার করুন

৩ দিন আগে ‘সন্ত্রাসীদের তালিকা দিয়েছিলেন’ কাউন্সিলর সোহেল

৩ দিন আগে ‘সন্ত্রাসীদের তালিকা দিয়েছিলেন’ কাউন্সিলর সোহেল

কাউন্সিলর সোহেল

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরফানুল হক রিফাত বলেন, ‘হত্যাকাণ্ডের দিন তিনেক আগে কাউন্সিলর সোহেল কম্পিউটারে টাইপ করে সন্ত্রাসীদের মোবাইল নম্বর ও নাম এবং তাদের কার বিরুদ্ধে কী মামলা রয়েছে তা লিখে একটি তালিকা করে আমাকে দিয়েছিল। বিষয়টি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপারকে অবহিত করতেও বলেছিল সে। সোহেল শঙ্কা প্রকাশ করে বলেছিল যে তালিকায় নাম থাকা সন্ত্রাসীরা যে কোনো মুহূর্তে তার ক্ষতি করতে পারে।’

কুমিল্লায় সোমবার নিজ কার্যালয়ে সন্ত্রাসীদের গুলিতে খুন হন কাউন্সিলর সোহেল ও তার সহযোগী হরিপদ সাহা। এ সময় আরো চারজন গুলিবিদ্ধ হন।

তবে কাউন্সিলর সোহেল আগে থেকেই নিজের নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কায় ছিলেন। আওয়ামী লীগের নেতাদের তা জানিয়েছিলেনও। এমনকি মোবাইল নম্বরসহ সন্দেহভাজন সন্ত্রাসীদের তালিকা করে তা এক নেতাকে দিয়েছিলেন তিনি। এমন দাবি করেছেন কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরফানুল হক রিফাত।

তিনি বলেন, ‘হত্যাকাণ্ডের দিন তিনেক আগে কাউন্সিলর সোহেল কম্পিউটারে টাইপ করে সন্ত্রাসীদের মোবাইল নম্বর ও নাম এবং তাদের কার বিরুদ্ধে কী মামলা রয়েছে তা লিখে একটি তালিকা করে আমাকে দিয়েছিল। বিষয়টি অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ও কুমিল্লা জেলা পুলিশ সুপারকে অবহিত করতেও বলেছিল সে। সোহেল শঙ্কা প্রকাশ করে বলেছিল যে তালিকায় নাম থাকা সন্ত্রাসীরা যে কোনো মুহূর্তে তার ক্ষতি করতে পারে।’

তালিকা পাওয়ার পর কোনো ব্যবস্থা নিয়েছেন কীনা-এমন প্রশ্নে আরফানুল হক রিফাত বলেন, ‘আমরা আলাপ-আলোচনা করেছি। তবে এতো দ্রুত এমন কিছু ঘটে যাবে তা স্বপ্নেও চিন্তা করিনি। আমরা এই ঘটনায় দায়ীদের দ্রুত গ্রেপ্তার ও দৃষ্টিন্তমূলক শাস্তির দাবি জানাই।’

মাসুমের রিমান্ড চেয়েছে পুলিশ

কাউন্সিলর সোহেলসহ জোড়া খুনের ঘটনায় এজাহারভুক্ত আসামি মাসুমের সাত দিনের রিমান্ড চেয়ে আবেদন করেছে পুলিশ। শুক্রবার এই আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা নগরীর চকবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পরিদর্শক কায়সার হামিদ।

তিনি জানান, শুক্রবার বিকেল ৪টায় ৮ নম্বর আমলি আদালতের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ শামসুর রহমান আমাদের আবেদন গ্রহণ করেন। শনিবার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য্য করবে আদালত।

পরে আসামি মাসুমকে কারাগারে পাঠানো হয়। বৃহস্পতিবার দুপুরে মাসুমকে জেলার চান্দিনা বাসস্ট্যান্ড থেকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা গ্রেপ্তার করে।

আরও পড়ুন:
আবাসিকে গ্যাস সংযোগ দিতে নির্দেশ কেন নয়: হাইকোর্ট
শক্তি বাড়িয়ে ছন্দে ফিরছে বাপেক্স
ভোলায় নতুন আরও তিন গ্যাস কূপ
গ্যাস সংকট কাটাতে দেশীয় উৎপাদন বাড়ানোর চিন্তা
বরগুনায় সম্ভাব্য গ্যাসক্ষেত্র থেকে নমুনা সংগ্রহ

শেয়ার করুন

আ.লীগের ১৬ বিদ্রোহী প্রার্থীকে বহিষ্কার

আ.লীগের ১৬ বিদ্রোহী প্রার্থীকে বহিষ্কার

বীর মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার বলেন, ‘সরাইলের নয় ইউনিয়নে অনেকেই বিদ্রোহী হিসেবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছেন। এরপর একাধিকবার দলের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা সত্ত্বেও তারা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেনি। তাই নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছে মর্মে গঠনতন্ত্রের ৪৭ ধারা মোতাবেক তাদের প্রত্যেককে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।’  

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইলে ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় ১৬ আওয়ামী লীগ নেতাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

শুক্রবার সন্ধ্যায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার।

বহিষ্কৃত নেতারা হলেন সরাইল সদর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে চশমা প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী আব্দুল জব্বার ও আনারস প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী হাজী ইউনুছ মিয়া, পানিশ্বর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে মোটর সাইকেল প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান এবং শাহজাদাপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আনারস প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী আঙ্গুর মিয়া ও মোটর সাইকেল প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী রফিকুল ইসলাম খোকন।

এছাড়া শাহবাজপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আনারস প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী মাসুদ রানা রুবেল ও অটোরিকশা প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী রাজী আহমেদ রাজ্জি, নোয়াগাঁও ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আনারস প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী আফতাব মিয়া, টেলিফোন প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী এমরান মিয়া, অটোরিকশা প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী কাজল চৌধুরী এবং ঘোড়া প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী সাইমন মিয়াকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

বহিষ্কৃত নেতাদের মধ্যে আরও রয়েছেন পাকশিমুল ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ঘোড়া প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী আলফু মিয়া, চশমা প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী আবদুল্লাহ্ মিয়া, দুটি পাতা প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী কুতুবুল আলম ও অটোরিকশা প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী আবুল কাসেম। এছাড়া চুন্টা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে আনারস প্রতীকের বিদ্রোহী প্রার্থী হুমায়ুন কবিরকেও বহিষ্কার করা হয়েছে।

এরা সবাই নিজ নিজ ইউনিয়ন থেকে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে চেয়ারম্যান পদে স্বতন্ত্রভাবে নির্বাচন করছেন।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার বলেন, ‘সরাইলের নয় ইউনিয়নে অনেকেই বিদ্রোহী হিসেবে স্বতন্ত্র প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করছেন। এরপর একাধিকবার দলের পক্ষ থেকে অনুরোধ করা সত্ত্বেও তারা মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করেনি। তাই নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছে মর্মে গঠনতন্ত্রের ৪৭ ধারা মোতাবেক তাদের প্রত্যেককে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।’

রোববার সরাইলের নয়টি ইউনিয়নে ভোট নেয়া হবে। এর মধ্যে উপজেলার সদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে চার জন, নোয়াগাঁও নয় জন, কালিকচ্ছ নয় জন, চুন্টা পাঁচ জন, উ: পানিশ্বরে ১০ জন, শাহবাজপুর আট জন, শাহজাদাপুরে পাঁচ জন, পাকশিমুল ইউনিয়নে ১৩ জন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন।

আরও পড়ুন:
আবাসিকে গ্যাস সংযোগ দিতে নির্দেশ কেন নয়: হাইকোর্ট
শক্তি বাড়িয়ে ছন্দে ফিরছে বাপেক্স
ভোলায় নতুন আরও তিন গ্যাস কূপ
গ্যাস সংকট কাটাতে দেশীয় উৎপাদন বাড়ানোর চিন্তা
বরগুনায় সম্ভাব্য গ্যাসক্ষেত্র থেকে নমুনা সংগ্রহ

শেয়ার করুন

ডিমলার সাত ইউনিয়নে ৪০৩ মনোনয়নপত্র জমা

ডিমলার সাত ইউনিয়নে ৪০৩ মনোনয়নপত্র জমা

প্রতীকী ছবি

মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই হবে ২৯ নভেম্বর। ৬ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন এবং ৭ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে।

স্থানীয় সরকার নির্বাচনের চতুর্থ ধাপে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার সাত ইউনিয়ন পরিষদে ৪০৩জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে চান। বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিনের হিসাব অনুযায়ী এই তথ্য জানিয়েছে উপজেলা নির্বাচন দপ্তর। এখানে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে ২৬ ডিসেম্বর।

মনোনয়নপত্র দাখিল করা সম্ভাব্য প্রার্থীদের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৪১, সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ড সদস্য পদে ৯৬ ও সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদে ২৬৬জন রয়েছেন।

নির্বাচন অফিস সূত্রমতে, ডিমলা সদর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৭, সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ড সদস্য পদে ১৬ ও সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদে ৪৫জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

এ ছাড়া পূর্ব ছাতনাই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪, সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ড সদস্য পদে ১৩ ও সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদে ২৭; পশ্চিম ছাতনাই ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৩, সংরক্ষিত সদস্য পদে ৮ ও সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদে ২৭; বালাপাড়া ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪, সংরক্ষিত সদস্য পদে ১৩ ও সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদে ৪৫; খালিশা চাপানি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৬, সংরক্ষিত সদস্য পদে ১৮ ও সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদে ৩৭; ঝুনাগাছ চাপানি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৯, সংরক্ষিত সদস্য পদে ১৭ ও সাধারণ সদস্য পদে ৪৭ এবং নাউতারা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৮, সংরক্ষিত সদস্য পদে ১১ ও সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য পদে ৩৮জন মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন।

দলীয়ভাবে আওয়ামী লীগ সাত ইউনিয়নে, বাংলাদেশের ওয়াকার্স পার্টি দুই ইউনিয়নে ও ইসলামী আন্দোলন একটি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে প্রার্থী দিয়েছে।

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহাবুবা আকতার বানু জানান, ২৬ ডিসেম্বর এই সাত ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

দাখিলকৃত মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই হবে ২৯ নভেম্বর। ৬ ডিসেম্বর প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ দিন এবং ৭ ডিসেম্বর প্রতীক বরাদ্দ দেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
আবাসিকে গ্যাস সংযোগ দিতে নির্দেশ কেন নয়: হাইকোর্ট
শক্তি বাড়িয়ে ছন্দে ফিরছে বাপেক্স
ভোলায় নতুন আরও তিন গ্যাস কূপ
গ্যাস সংকট কাটাতে দেশীয় উৎপাদন বাড়ানোর চিন্তা
বরগুনায় সম্ভাব্য গ্যাসক্ষেত্র থেকে নমুনা সংগ্রহ

শেয়ার করুন

ষড়যন্ত্র করে নৌকার প্রার্থী বদলের অভিযোগ

ষড়যন্ত্র করে নৌকার প্রার্থী বদলের অভিযোগ

নৌকার প্রার্থী বদলের অভিযোগে শুক্রবার নোয়াখালীর কবিরহাটে মানববন্ধন করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা

অভিযোগ উঠেছে, নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলার ধানসিঁড়ি ইউপিতে নৌকার মনোনয়ন পান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মো. কামাল উদ্দিন। পরে তার পরিবর্তে মনোনয়ন দেয়া হয় কামাল খান নামের একজনকে।

নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলার ধানসিঁড়ি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ষড়যন্ত্র করে নৌকার প্রার্থী বদলের অভিযোগ উঠেছে।

ধানসিঁড়ি ইউপিতে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. কামাল উদ্দিন। পরে তার পরিবর্তে মনোনয়ন দেয়া হয় কামাল খান নামের এক ব্যবসায়ীকে। এমনটা অভিযোগ করে প্রতিবাদে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে দলীয় নেতাকর্মী ও এলাকাবাসী।

শুক্রবার দুপুরে ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের নিমতলী বাজারে ঘন্টাব্যাপী এই মানববন্ধন ও বিক্ষোভ হয়।

এ সময় বক্তব্য দেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইব্রাহীম খলিল, ইউনিয়ন যুবলীগের সাবেক আহ্বায়ক সাহাব উদ্দিন, ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, স্থানীয় প্রবীণ ব্যক্তি আবুল কাশেম দুলাল, জেবল হক, নুরেজ্জামান, আবুল কালাম প্রমুখ।

বক্তারা বলেন, আওয়ামী লীগ দলীয় মনোনয়ন বোর্ড গত ২৩ নভেম্বর ধানসিঁড়ি ইউপি নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে মো. কামাল উদ্দিনকে মনোনয়ন দিয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় ওয়েবসাইটে তা প্রকাশ করে। অথচ ২৪ নভেম্বর দলীয় মনোনয়নের চিঠিতে ব্যবসায়ী কামাল খানের নাম আসে।

তারা বলেন, ওই চিঠিতে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার নাম ও সিলে একাধিক ভুল রয়েছে। এতে স্পষ্ট বোঝা যায়, ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে কামাল উদ্দিনের পরিবর্তে কামাল খানকে নৌকা প্রতীক দেয়া হয়েছে। বিষয়টি হয়তো জননেত্রী শেখ হাসিনা অবগত নন।

মানববন্ধন থেকে কামাল খানকে বাদ দিয়ে কামাল উদ্দিনকে নৌকা প্রতীক দেয়ার দাবি জানানো হয়।

আরও পড়ুন:
আবাসিকে গ্যাস সংযোগ দিতে নির্দেশ কেন নয়: হাইকোর্ট
শক্তি বাড়িয়ে ছন্দে ফিরছে বাপেক্স
ভোলায় নতুন আরও তিন গ্যাস কূপ
গ্যাস সংকট কাটাতে দেশীয় উৎপাদন বাড়ানোর চিন্তা
বরগুনায় সম্ভাব্য গ্যাসক্ষেত্র থেকে নমুনা সংগ্রহ

শেয়ার করুন

চাকরি ছাড়লেন চট্টগ্রামে নালায় নিখোঁজ ছালেহর ছেলে

চাকরি ছাড়লেন চট্টগ্রামে নালায় নিখোঁজ ছালেহর ছেলে

১৩ অক্টোবর ছাদেকুল্লাহ মাহিনকে চাকরি দিয়েছিল চট্টগ্রাম সিটি করপোরশন।

মাহিন বলেন, ‘আমাকে তারা অফিসিয়াল কাজ দিবে বলেছিল। এছাড়া এই চাকরিটা শুরু করার সময়ও আমাকে রিসিট লেখার কাজ বলেছিল। কাজ করতে গিয়ে দেখি আমাকে গাড়িতে তেল ভরানোর কাজ করতে হচ্ছে। সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত কাজ করতে হয় সেখানে। তাহলে আমি পড়াশোনা করব কখন?’  

চট্টগ্রামে নালায় নিখোঁজ ছালেহ আহমেদের ছেলে ছাদেকুল্লাহ মাহিন সিটি করপোরেশনের গ্যাস পাম্পের চাকরিতে ইস্তফা দিয়েছেন।

নিউজবাংলাকে শুক্রবার রাতে তিনি বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

২১ নভেম্বর বিকেলে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন পাম্পে দায়িত্বরত কর্মকর্তাকে রিজাইন লেটার জমা দেন বলে জানান। চিঠিতে চাকরি ছাড়ার কারণ হিসেবে পারিবারিক সমস্যার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

মাহিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাকে তারা অফিসিয়াল কাজ দিবে বলেছিল। এছাড়া এই চাকরিটা শুরু করার সময়ও আমাকে রিসিট লেখার কাজ বলেছিল। কাজ করতে গিয়ে দেখি আমাকে গাড়িতে তেল ভরানোর কাজ করতে হচ্ছে। সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত কাজ করতে হয় সেখানে। তাহলে আমি পড়াশোনা করব কখন? এমনিতেই আমার ইন্টারে সায়েন্স গ্রুপ।’

তিনি বলেন, ‘সব কিছু বিবেচনা করে চাকরিটা ছাড়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি আমি। রিজাইন লেটার জমা দিয়েছি। আপাতত উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা শেষ করতে চাই। এরপর দেখা যাক কী হয়।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে চসিকের সুপারিনটেনডেন্ট প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) সুদীপ বসাক বলেন, ‘আমি যেহেতু এটার দায়িত্বে আছি, রিজাইন লেটার দিলে আমার কাছে আসার কথা। আমি রিজাইন লেটার পাইনি। মাহিন আমাদের বলেছিলেন, পরীক্ষার জন্য কিছুদিন আসবেন না।

‘গাড়িতে তেল ভরানোর কাজ তাকে দিয়ে করানো হয়নি, তার কাজ রিসিট লেখা। তবে তাকে নিজের জন্য টেকনিক্যাল কাজগুলো শিখে রাখার অনুরোধ করেছিলাম আমি।’

তিনি বলেন, ‘মাহিন জয়েন করার পর তিনদিন কর্মস্থলে এসেছেন। এর মধ্যে একদিনও ফুলটাইম কাজ করেননি। তিনদিনে একটা কাজ সম্পর্কে সামগ্রিক ধারণা পাওয়া কঠিন। আমরা তাকে শহরে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকার অনুরোধ করেছিলাম, প্রয়োজনীয় আর্থিক সাপোর্টেরও ব্যবস্থা করার কথা বলেছিলাম। তিনি গুরুত্ব দেননি। পড়াশোনার জন্যও যেকোন সময় প্রয়োজনীয় ছুটির ব্যাপারে আশ্বস্ত করেছিলাম। এরপরও তিনি চাকরির ব্যাপারে খুব একটা ইতিবাচক না।’

এর আগে ২৫ আগস্ট নগরীর মুরাদপুর এলাকায় নালায় পড়ে নিখোঁজ হন সবজি ব্যবসায়ী সালেহ আহমেদ। এখনও তার খোঁজ মেলেনি।

পরে ১৩ অক্টোবর মেয়রের আশ্বাস অনুযায়ী তার ছেলে ছাদেকুল্লাহ মাহিনকে চাকরি দেয় চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন।

আরও পড়ুন:
আবাসিকে গ্যাস সংযোগ দিতে নির্দেশ কেন নয়: হাইকোর্ট
শক্তি বাড়িয়ে ছন্দে ফিরছে বাপেক্স
ভোলায় নতুন আরও তিন গ্যাস কূপ
গ্যাস সংকট কাটাতে দেশীয় উৎপাদন বাড়ানোর চিন্তা
বরগুনায় সম্ভাব্য গ্যাসক্ষেত্র থেকে নমুনা সংগ্রহ

শেয়ার করুন

নরসিংদীতে স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা গ্রেপ্তার

নরসিংদীতে স্বেচ্ছাসেবক দল নেতা গ্রেপ্তার

শাহরিয়ার শামস কেনেডি

পুলিশ জানায়, বিএনপির কর্মসূচি থেকে পুলিশের ওপর হামলার মামলায় নরসিংদী স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার শামস কেনেডিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

নরসিংদীতে স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক শাহরিয়ার শামস কেনেডিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। শুক্রবার রাত ১১টার দিকে শহরের বাজীর মোড় এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

নরসিংদী সদর মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) হারুন অর রশীদ বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

পুলিশ জানায়, বিএনপির নেতাকর্মীরা ২২ নভেম্বর নরসিংদী সদরের চিনিশপুর এলাকায় রাস্তা বন্ধ করে দলীয় অনুষ্ঠান করছিল। পুলিশ তাদেরকে রাস্তা থেকে সরে যেতে বললে তারা পুলিশের ওপর ইটপাটকেল ছোড়ে এবং ককটেল বিস্ফোরণ ঘটায়। এ সময় ইটের আঘাতে আবু সাইদ ও সবুজ মিয়া নামে দুজন পুলিশ সদস্য আহত হন।

ঘটনাস্থল থেকে পলানোর সময় ছয়জনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। এ সময় ঘটনাস্থল থেকে ২০টি ইটের টুকরো, ৫টি লাঠি ও বিস্ফোরিত তিন/চারটি ককটেলের অংশবিশেষ উদ্ধার করা হয়। পরে পুলিশ থানায় মামলা করে। ওই ঘটনায় শাহরিয়ার শামস কেনেডিকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে পুলিশ জানায়।

আরও পড়ুন:
আবাসিকে গ্যাস সংযোগ দিতে নির্দেশ কেন নয়: হাইকোর্ট
শক্তি বাড়িয়ে ছন্দে ফিরছে বাপেক্স
ভোলায় নতুন আরও তিন গ্যাস কূপ
গ্যাস সংকট কাটাতে দেশীয় উৎপাদন বাড়ানোর চিন্তা
বরগুনায় সম্ভাব্য গ্যাসক্ষেত্র থেকে নমুনা সংগ্রহ

শেয়ার করুন