সাংবাদিক নির্যাতনের সাজা হয় না  

সাংবাদিক নির্যাতনের সাজা হয় না  

রাজনৈতিক সহিংসতায় নোয়াখালীতে সাংবাদিক বুরহান উদ্দিন মুজাক্কিরের মৃত্যুতে তার সহকর্মীদের প্রতিবাদ সভা। ফাইল ছবি

কমিটি টু প্রোটেক্ট জার্নালিস্টস (সিপিজে)-এর তথ্য বলছে, ২০০০ সাল থেকে চলতি বছর পর্যন্ত ২৯ জন সাংবাদিক নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি ঘটনার কোনো বিচার হয়নি। সিপিজের সাংবাদিক হত্যার ক্ষেত্রে বিচার না হওয়া নিয়ে বিশ্ব দায়মুক্তি সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ১২ দেশের মধ্যে ১১তম।

তিন দিন নিখোঁজ থাকার পর গত বছরের ১ নভেম্বর আজকের সূর্যোদয় পত্রিকার চট্টগ্রাম ব্যুরো অফিসের নিজস্ব প্রতিবেদক গোলাম সারওয়ারকে প্রায় অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

সীতাকুণ্ডের একটি সেতুর নিচ থেকে উদ্ধার হওয়া সারওয়ার অসংলগ্নভাবে বলছিলেন, ‘আমারে মাইরেন না, আমি আর নিউজ করব না।’

পরে অজ্ঞাতনামা ছয় ব্যক্তির বিরুদ্ধে অপহরণের মামলা করেন সারওয়ার। গত সেপ্টেম্বরে সে মামলার চূড়ান্ত প্রতিবেদন দিয়েছে কোতোয়ালি থানা পুলিশ। তবে সারোয়ার অপহৃত হয়েছিলেন, এমন কোনো তথ্য-প্রমাণ তদন্তে পাওয়া যায়নি। আদালত এই প্রতিবেদন আমলে না নিয়ে অধিকতর তদন্তের জন্য পিবিআইকে দায়িত্ব দিয়েছে।

পুলিশ চূড়ান্ত প্রতিবেদন দেয়ায় সারোয়ার বলেন, ‘আমাকে কি তাহলে কেউ অপহরণ করেনি?’

সারওয়ারের নিখোঁজের নেপথ্যের ঘটনা নিয়ে করা এক প্রতিবেদনে ক্ষুব্ধ হয়ে চট্টগ্রামের আদালতে সারওয়ারসহ তিনজনের বিরুদ্ধে ১০০ কোটি টাকার মানহানির মামলা করেন এক মন্ত্রীর ভাই। এমনকি সারোয়ারের সাংবাদিকতার সনদ যেন বাতিল করা হয়, সে বিষয়েও চট্টগ্রামের জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করা হয়।

এর আগেও সংবাদ প্রকাশের জেরে নির্যাতনের শিকার বহু সাংবাদিক বিচার পাননি। ভার্চুয়াল মাধ্যম নিরাপদ করার জন্য করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সাংবাদিকদের হয়রানির নতুন ও সবচেয়ে আধুনিক হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে।

এ পরিস্থিতিতে মঙ্গলবার (২ নভেম্বর) জাতিসংঘ পালন করছে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে অপরাধের দায়মুক্তি অবসান দিবস।

যুক্তরাজ্যভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন আর্টিকেল-১৯-এর তথ্য বলছে, ২০২০ সালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে ৪১টি মামলা হয়েছে। অনলাইনে খবর প্রকাশ ও শেয়ার বা মত প্রকাশের কারণে এসব মামলা হয়। এতে অভিযুক্ত ছিলেন ৭৫ জন, যার মধ্যে ৩২ জনকে গ্রেপ্তার হতে হয়েছে। আর চলতি বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ২৫ মামলায় ৪৮ জন সাংবাদিককে অভিযুক্ত করা হয়। এর মধ্যে ১১ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আর্টিকেল-১৯ বলছে, এ আইনটি সাধারণ মানুষের চেয়ে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধেই তুলনামূলকভাবে বেশি ব্যবহার করা হচ্ছে। ২০২০ সালে মোট ১৯৭টি মামলার মধ্যে ৪১টিই সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে। অর্থাৎ প্রতি পাঁচটি মামলার একটি সাংবাদিকের বিরুদ্ধে করা। এসব মামলায় ৩৬৮ জনের মধ্যে ৭৫ জন সাংবাদিক। চলতি বছরেও এখন পর্যন্ত ৩৫৩ অভিযুক্তের মধ্যে সাংবাদিক ৪৮ জন। ১৮৮টি মামলার মধ্যে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে ২৫টি।

গণমাধ্যমকে রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ এবং সাংবাদিকদের জাতির বিবেক বলা হয়। গণমাধ্যম স্বাধীন হলেই তার সুফল সরকার তথা জনগণ পায়। আশঙ্কার বিষয়, সাংবাদিক হত্যাকাণ্ড বা তাদের ওপর হামলার বেশির ভাগেরই বিচার হয় না।

সাংবাদিকদের নিয়ে কাজ করা আন্তর্জাতিক সংগঠন কমিটি টু প্রোটেক্ট জার্নালিস্টস (সিপিজে)-এর তথ্য বলছে, ২০০০ সাল থেকে চলতি বছর পর্যন্ত ২৯ জন সাংবাদিক নিহত হয়েছেন। এর মধ্যে বেশ কয়েকটি ঘটনার কোনো বিচার হয়নি। আবার ২০২০ সালেই ছয় সাংবাদিক কারাবরণ করেছেন।

গত ২৮ অক্টোবর প্রকাশিত সিপিজের সাংবাদিক হত্যার ক্ষেত্রে বিচার না হওয়া নিয়ে বিশ্ব দায়মুক্তি সূচকে (গ্লোবাল ইমপিউনিটি ইনডেক্স) বাংলাদেশের অবস্থান ১২ দেশের মধ্যে ১১তম। বাংলাদেশের সামনে রয়েছে রাশিয়া, পাকিস্তান, ব্রাজিল, ফিলিপাইন, মেক্সিকো, আফগানিস্তান, দক্ষিণ সুদান, ইরাক, সিরিয়া ও সোমালিয়া। আর বাংলাদেশের পরই রয়েছে ভারতের অবস্থান। সিপিজের তথ্য বলছে, গত ২০ বছরে বিশ্বে ১ হাজার ৫৬২ জন সাংবাদিক নিহত হয়েছেন।

সিপিজে বলছে, দুর্নীতি, দুর্বল প্রাতিষ্ঠানিক কাঠামো এবং তদন্তে রাজনৈতিক সদিচ্ছার অভাবের কারণে সাংবাদিক হত্যার বিচার হয় না এবং হত্যাকারীরা দায়মুক্তি পায়। এ ছাড়া আইনি বাধাও সাংবাদিক হত্যার বিচারে ভূমিকা রাখে বলে সংস্থাটির প্রতিবেদনে বলা হয়।

ঐক্যের অভাব

সাংবাদিকদের মধ্যে রাজনৈতিক বিভক্তিও নির্যাতনের কারণ মনে করছেন অনেকে। প্রতিটি সাংবাদিক সংগঠনই রাজনৈতিকভাবে বিভক্ত। অধিকারের প্রশ্ন এলেই রাজনৈতিক বিভক্তি বড় করে চোখে পড়ে।

দেশের সাংবাদিক নিপীড়নের কারণ হিসেবে সাংবাদিকদের মধ্যে আন্তরিকতা ও ঐক্যের অভাবকে দায়ী করছেন বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) একাংশের নবনির্বাচিত সভাপতি ওমর ফারুক।

ওমর ফারুক নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বড় সমস্যা হচ্ছে আমাদের মধ্যে ঐক্যের অভাব, আন্তরিকতার অভাব। আমরা যদি রাজপথে বা যেকোনো জায়গায় ঐক্যবদ্ধভাবে আমাদের ভয়েস তুলতে পারতাম, কথা বলতে পারতাম, তাহলে বিচার পেতাম। অন্যরা আমাদের সমীহ করত। অন্তত আমাদের সঙ্গে অন্যায় করার সাহস পেত না।’

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ‘প্রেস ক্লাব ও ডিআরইউতে বিএনপি, আওয়ামী লীগসহ সব দলের সমর্থক সাংবাদিক একসঙ্গে চলাফেরা করে, উঠে-বসে, তাতে কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু অধিকারের প্রশ্ন এলেই এক দল এক দিকে চলে যায়, এক থাকে না।’

চলতি বছরের সাংবাদিক হত্যা

গত ১৯ ফেব্রুয়ারি বিকেলে নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার চাপরাশির হাট এলাকায় সেতুমন্ত্রীর ছোট ভাই আবদুল কাদের মির্জা এবং সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান বাদল গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ ও গোলাগুলির ঘটনা ঘটে। ওই ঘটনার সংবাদ সংগ্রহের সময় দৈনিক বাংলাদেশ সমাচার পত্রিকার কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধি বুরহান উদ্দিন মুজাক্কির গুলিবিদ্ধ হন। পরে তিনি হাসপাতালে মারা যান।

মুজাক্কিরের বাবার করা মামলায় জামিন পান অন্যতম আসামি আব্দুল মালেক, যদিও পরে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে আপিল বিভাগ জামিন বাতিল করে।

সাগর-রুনি হত্যা

২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সারোয়ার ও এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনিকে হত্যা করা হয়। এরপর নিহত রুনির ভাই নওশের আলম রোমান শেরেবাংলা নগর থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। এ নিয়ে ৮২ বার পেছানো হয়েছে এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার তারিখ। আগামী ২৪ নভেম্বর তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার দিন ধার্য করেছে আদালত।

১০ বছরেও মামলার কোনো সুরাহা হয়নি।

সাংবাদিকদের জন্য আলাদা আইন কত ‍দূর

সাংবাদিকদের অধিকার নিশ্চিত করতে ‘গণমাধ্যমকর্মী আইন’ নামে একটি আইন করতে যাচ্ছে সরকার। তবে এটির খসড়া প্রণয়ন এখনও প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছে।

সাংবাদিকদের জন্য আলাদা আইন সম্পর্কে ওমর ফারুক বলেন, ‘এ আইন নিয়ে প্রাথমিক পর্যায়ে কথা হয়েছিল, কিন্তু লিখিত কোনো ভিত্তি তৈরি হয়নি। এর খসড়া তৈরি করে সরকারের কাছে জমা দিতে বলা হয়েছিল। কিন্তু আমরা তা পারি নাই। বিএফইউজের নতুন কমিটি এটা নিয়ে সরকারের সঙ্গে কাজ করবে। দ্রুত যাতে এ আইন করা যায় তা দেখা হবে।’

আরও পড়ুন:
সাংবাদিক মাসউদের নামে মামলা প্রত্যাহার চায় এলআরএফ
নারী সহকর্মীর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের মামলায় সাংবাদিক কারাগারে
সমাজের অসংগতি তুলে ধরাই সাংবাদিকদের কাজ: হাইকোর্ট
হাইওয়ে থানায় ২ সাংবাদিকের ওপর হামলা
ব্যাংক হিসাব তলব: সাংবাদিকদের আশ্বাস তথ্যমন্ত্রীর

শেয়ার করুন

মন্তব্য

প্রকল্পের মেয়াদের চেয়ে পরামর্শকের মেয়াদ বেশি

প্রকল্পের মেয়াদের চেয়ে পরামর্শকের মেয়াদ বেশি

বগুড়া থেকে সিরাজগঞ্জ পর্যন্ত রেল প্রকল্পে বাড়তি আড়াই বছরের জন্য পরামর্শক নিয়োগ দিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। ছবি: সংগৃহীত

বগুড়া-সিরাজগঞ্জ সরাসরি রেলপথ নির্মাণ হলে ঢাকার সঙ্গে বগুড়ার রেলপথের দূরত্ব ১০০ কিলোমিটারের বেশি কমে যাবে। এ-সংক্রান্ত প্রকল্পটি শেষ হয়ে যাবে আর দুই বছরের মধ্যে। তবে যে পরামর্শক নিয়োগ দেয়া হয়েছে, তাদের মেয়াদ থাকবে বাড়তি আড়াই বছর। এটিকে নিয়মের ব্যত্যয় হিসেবে দেখা হচ্ছে।

বগুড়া থেকে সিরাজগঞ্জ পর্যন্ত ৮৬ কিলোমিটার নতুন রেলপথ নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। তবে তিন বছরে এ প্রকল্পে কাজের অগ্রগতি বলতে সামান্যই। এতে পরামর্শক নিয়োগ হয়েছে মাত্র কিছু দিন আগে।

প্রকল্পের মেয়াদ আর দুই বছরের কম থাকলেও মেয়াদের পরও বাড়তি আড়াই বছরের জন্য পরামর্শক নিয়োগ দিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়, যা উন্নয়ন শৃঙ্খলার পরিপন্থি বলে উল্লেখ করেছেন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

রেলপথ মন্ত্রণালয় জানায়, বগুড়া থেকে সিরাজগঞ্জে শহীদ এম মনসুর আলী স্টেশন পর্যন্ত নতুন ডুয়েল গেজ রেলপথ নির্মাণ প্রকল্পটিতে ব্যয় হবে ৫ হাজার ৫৮০ কোটি টাকা। এতে ভারতীয় ঋণ পাওয়া যাবে ৩ হাজার ১৪৬ কোটি টাকা। বাকি ২ হাজার ৪৩৩ কোটি টাকা জোগান দেবে বাংলাদেশ সরকার। ২০১৮ সালের জুলাইতে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে (একনেক) অনুমোদন পাওয়া এ প্রকল্পের কাজ হয়েছে মাত্র ১৩ শতাংশের মতো।

প্রকল্পের মেয়াদ রয়েছে আর মাত্র দেড় বছরের কিছু বেশি, ২০২৩ সালের জুন পর্যন্ত। তবে গত সেপ্টেম্বরে এ প্রকল্পে পরামর্শক নিয়োগ দিয়েছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। দেড় বছর মেয়াদ থাকলেও পরামর্শক নিয়োগ পেয়েছে ২০২৫ সাল পর্যন্ত।

দুই ভাগে এ কাজ করবে ভারতের দুটি পরামর্শক প্রতিষ্ঠান রাইটস লিমিটেড ও আরভি অ্যাসোসিয়েটস আর্কিটেক্টস ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড কনসালট্যান্ট প্রাইভেট লিমিটেড।

প্রথম ধাপে সম্ভাব্যতা সমীক্ষা হালনাগাদ করা, বিস্তারিত নকশা তৈরির জন্য প্রতিষ্ঠান দুটিকে সময় দেয়া হয়েছে ১৩ মাস। দ্বিতীয় ধাপে ৩০ মাসের জন্য নির্মাণকাজ তদারক করবে প্রতিষ্ঠান দুটি। পরামর্শক প্রতিষ্ঠান তাদের প্রতিবেদন জমা দিলে রেললাইন নির্মাণের জন্য দরপত্র আহ্বান করাসহ অন্যান্য কাজ শুরু হবে।

চুক্তি হয়েছে গত ২৭ সেপ্টেম্বর। চুক্তিমূল্য ৯৭ কোটি ৫৬ লাখ টাকা।

পরিকল্পনা কমিশন বলছে, প্রকল্প বাস্তবায়ন মেয়াদ শেষ হওয়ার পর অতিরিক্ত সময়ের জন্য পরামর্শকের সঙ্গে চুক্তি করার কোনো সুযোগ নেই। বিশেষ ক্ষেত্রে কমিশনের অনুমোদন সাপেক্ষে তা করা যেতে পারে। তবে সে রকম নজির নেই বললেই চলে।

প্রকল্পের মেয়াদ বাড়লেও তা কত সময়ের জন্য বাড়বে তাও আগে থেকে বলা যায় না। এ ক্ষেত্রে আগে থেকে নিশ্চয়তার কোনো সুযোগ নেই। প্রকল্প সংশোধনের পরই কেবল বাড়তি মেয়াদের জন্য পরামর্শক নিয়োগ পেতে পারে। ঠিকাদার নিয়োগ বা পণ্য কেনার ক্ষেত্রেও একই কথা প্রযোজ্য। এমনটি করা হলে তা অবশ্যই উন্নয়ন প্রকল্পের শৃঙ্খলার ব্যত্যয়।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে পরিকল্পনা কমিশনের ভৌত অবকাঠামো বিভাগের সদস্য (সচিব) মো. মামুন-আল-রশীদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কোনো প্রকল্পেই মেয়াদের পর বাড়তি সময়ে কোনো কাজ করার সুযোগ নেই। কারণ প্রকল্পের যেখানে মেয়াদই নেই, সেখানে পরামর্শক নিয়োগ পাবে কীভাবে? পরামর্শকের ফি-ই বা আসবে কোথা থেকে? এ ক্ষেত্রে হয়তো মেয়াদ বৃদ্ধির জন্য প্রস্তাব পাঠানোর কথা। প্রস্তাব বিবেচনায় নিয়ে মেয়াদ বাড়লেই সেই মেয়াদের জন্য পরামর্শক বা অন্য কোনো পক্ষের চুক্তি করা যাবে।

‘অথবা বিশেষ বিবেচনায় পরিকল্পনা কমিশনের সম্মতি নিয়ে মেয়াদ পরে বাড়তে পারে এমন কারণ দেখিয়ে সম্মতিপত্র চাইলে তা বিবেচনায় নেয়া হয়। কিন্তু রেলের কোনো প্রকল্পের বিষয়ে এমন কোনো চিঠি আসেনি।’

মেয়াদের পরও পরামর্শক নিয়োগ বিষয়ে রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক মো. কামরুল আহসান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রকল্পটি বেশ গুরুত্বপূর্ণ, জটিলতা কাটিয়ে এটির কাজ আবার শুরু হচ্ছে। মেয়াদ প্রায় শেষের দিকে থাকলেও প্রকল্পটি সংশোধন করা হবে, এ জন্য বাড়তি সময়ের জন্য পরামর্শক নিয়োগ দেয়া হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যেই সংশোধনী প্রস্তাব পাঠানো হবে।’

প্রকল্প পরিচালক আবু জাফর মিয়া নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ প্রকল্পের মেয়াদ ২০২৩ জুন পর্যন্ত, তবে আমাদের কনসালট্যান্ট নিয়োগের মেয়াদ ২০২৫ পর্যন্ত। এ প্রকল্প রিভাইজ করতে হবে। তাই পরামর্শক নিয়োগ দেয়া হয়েছে।’

প্রকল্পের মেয়াদ কম কিন্তু পরামর্শক নিয়োগ বেশি সময়ের জন্য, এটা আইন মেনে হয়েছে কি না জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, ‘এখন কনসালট্যান্ট নিয়োগ দেয়া হয়েছে, তারা স্টাডি করবে। তারপর কাজ শুরু হবে। তবে করোনার কারণে কাজে অনেক বিলম্ব হয়েছে। তা ছাড়া কনসালট্যান্ট প্রথম ১৩ মাস ডিটেইল ডিজাইন করবে। তারপর ৩০ মাস সুপারভিশন করবে।’

প্রকল্পের মেয়াদসংক্রান্ত কোনো সংশোধনী প্রস্তাব পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হয়েছে কি না প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, ‘এখনও প্রস্তাব পাঠানো হয়নি। এখনই পাঠাব না। আগে ডিটেইল স্টাডি হবে, তার উপর ভিত্তি করে যদি ব্যয় কম বা বেশি প্রাক্কলন করা হয়, তার ভিত্তিতে সংশোধনী প্রস্তাব পাঠানো হবে। আসলে বাংলাদেশে তো অনেক প্রকল্প পাস হয়, কিন্তু একদম ডিউ টাইমে তো আর কোনো প্রজেক্ট শেষ হয় না। এ প্রকল্পের মেয়াদ বাড়বেই।’

তিন বছরে কাজ শুরু হয়নি কেন, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘গত তিন বছরে টেন্ডারিং হলো, কনসালট্যান্ট নিয়োগ হয়েছে, এটা তো প্রকল্পের কাজ।’

কী থাকবে প্রকল্পে

রেলপথ মন্ত্রণালয় বলছে, বর্তমানে ঢাকা থেকে রংপুর বিভাগের জেলাগুলোতে ট্রেন যায় পাবনার ঈশ্বরদী ঘুরে বগুড়ার সান্তাহার হয়ে। এ কারণে শত কিলোমিটার বাড়তি পথ পাড়ি দিতে হয় উত্তরের যাত্রীদের। রেলের হিসাব অনুযায়ী, ঢাকা থেকে বগুড়ার বর্তমান দূরত্ব ৩২৪ কিলোমিটার। এর মধ্যে কাহালু সান্তাহার-আব্দুলপুর-ঈশ্বরদী বাইপাস-জামতৈল-শহীদ এম মনসুর আলী (বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পাড়) রুটই প্রায় ১৮৭ কিমি দীর্ঘ।

তাই ঢাকা থেকে সরাসরি বগুড়ার রেলপথ নির্মাণের উদ্যোগ বহুদিনের। ২০০৫ সালে এই রেলপথ নির্মাণের পরিকল্পনা নেয়া হয়। এশিয়া উন্নয়ন ব্যাংকের (এডিবি) অর্থায়নে তখন প্রাক-সমীক্ষাও হয়েছিল। কিন্তু অর্থায়ন না হওয়ায় প্রকল্পটি এগোয়নি।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৫ সালের নভেম্বরে বগুড়া সফরে গিয়ে বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে বগুড়া হয়ে রংপুর পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণের নির্দেশ দেন। ২০১৭ সালে ভারতের তৃতীয় লাইন অফ ক্রেডিটের (এলওসি) ঋণে প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়।

এতে সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী স্টেশন থেকে বগুড়া রায়পুর-রায়গঞ্জ-শেরপুর-রানিরহাট রুটে সরাসরি রেল সংযোগ নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। বগুড়া স্টেশন থেকে শহীদ এম মনসুর আলী স্টেশনের মধ্যকার রুটের দৈর্ঘ্য হবে প্রায় ৭৫ কিলোমিটার। এ ছাড়া রানিরহাট স্টেশন থেকে কাহালু স্টেশনের মধ্যে রুটে ১১ দশমিক ৫ কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণ হবে। এ জন্য ৯৬০ একর জমি অধিগ্রহণ করা হবে।

বগুড়া ও সিরাজগঞ্জের মধ্যে সরাসরি এ রেল যোগাযোগের ফলে প্রায় ১১২ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের পথ এবং প্রায় তিন ঘণ্টা ভ্রমণের সময় কমবে। নতুন রেলপথ নির্মাণ হলে ঢাকা-বগুড়ার দূরত্ব কমে হবে ২১২ কিলোমিটার। এ রুটের মাধ্যমে দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকাসহ অন্যান্য এলাকার সরাসরি রেল যোগাযোগ নিশ্চিত হবে।

আরও পড়ুন:
সাংবাদিক মাসউদের নামে মামলা প্রত্যাহার চায় এলআরএফ
নারী সহকর্মীর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের মামলায় সাংবাদিক কারাগারে
সমাজের অসংগতি তুলে ধরাই সাংবাদিকদের কাজ: হাইকোর্ট
হাইওয়ে থানায় ২ সাংবাদিকের ওপর হামলা
ব্যাংক হিসাব তলব: সাংবাদিকদের আশ্বাস তথ্যমন্ত্রীর

শেয়ার করুন

পুরান ঢাকার আতঙ্ক কিশোর অপরাধ

পুরান ঢাকার আতঙ্ক কিশোর অপরাধ

প্রতীকী ছবি

লালবাগ, বংশাল, চকবাজার, কোতোয়ালি, সূত্রাপুর, ওয়ারী ও কামরাঙ্গীরচর এলাকায় গত এক বছরে কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের হাতে ১০ কিশোর নিহত হয়েছে। এসব ঘটনায় কয়েকজন কারাগার ও কিশোর সংশোধনাগারে থাকলেও অন্য সদস্যরা জামিনে এসে মামলা তুলে নিতে ভিকটিমদের হুমকি দিচ্ছে। তাদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন এসব এলাকার বাসিন্দারা।

দিন দিন পুরান ঢাকায় বেপরোয়া হয়ে উঠছে কিশোর গ্যাং ও এর সদস্যরা। তারা প্রতিনিয়ত চুরি-ছিনতাই, মেয়েদের লাঞ্ছিত করা ও মাদকের আসর বসানোর মতো অপরাধ করছে।

শুধু তা-ই নয়, লালবাগ, বংশাল, চকবাজার, কোতোয়ালি, সূত্রাপুর, ওয়ারী ও কামরাঙ্গীরচর এলাকায় গত এক বছরে এ চক্রের সদস্যদের হাতে ১০ কিশোর নিহত হয়েছে। এসব ঘটনায় কয়েকজন কারাগার ও কিশোর সংশোধনাগারে থাকলেও অন্য সদস্যরা জামিনে এসে মামলা তুলে নিতে ভিকটিমদের হুমকি দিচ্ছে। তাদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন এসব এলাকার বাসিন্দারা।

গত মার্চে পবিত্র শবেবরাতের রাতে সূত্রাপুরের ফরাশগঞ্জ ঘাট এলাকায় সিগারেট খাওয়া নিয়ে কিশোরদের মধ্যে বাগবিতণ্ডা হয়। এরই একপর্যায়ে এক কিশোরের ছুরিকাঘাতে প্রাণ হারায় আরিফ হোসেন অনন্ত নামে আরেক কিশোর। হামলায় আহত হয় নিহতের বন্ধু সাজু আহমেদ ও সোহেল। হতাহতদের বয়স ১৪-১৫ বছরের মধ্যে।

গত ২১ জুন কিশোর গ্যাংয়ের হাতে বংশাল আগামসিহ লেনে আহমেদ বাওয়ানী স্কুল অ্যান্ড কলেজের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র ইমন খুন হয়। এ ঘটনায় পাঁচ আসামিকে আটক করে জেলহাজতে পাঠালেও গত মাসে দুই আসামি জামিনে বেরিয়ে এসে মামলার বাদী ও পরিবারকে হুমকি দিচ্ছে। অভিযোগ আছে, স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের প্রশ্রয় পাচ্ছে তারা। ওই এলাকার বাংলাদেশ মাঠসংলগ্ন (পাকিস্তান মাঠ নামেও পরিচিত) আলাবাসুদ গ্রুপের সদস্য সাত রওজা এলাকার লিমন, আকাশ, সিহাব, বাচ্চা সিপাত ও দাঙ্গা রাও সোহাগ নামের কয়েক কিশোর এসব হুমকি দিচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে। জানা গেছে, তারা একটি গ্যাংয়ের সদস্য।

গত মার্চে বাংলাদেশ মাঠের পাশে মাজেদ সরদার কমিউনিটি সেন্টারের সামনে আহমেদ বাওয়ানী স্কুলের সপ্তম শ্রেণির ছাত্র আকিব হোসেন আলতাবকে কুপিয়ে ফেলে রাখে একদল কিশোর। মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন জায়গায় গুরুতর জখমের কারণে তার শতাধিক সেলাই লেগেছে। দুই মাস বক্ষব্যাধি হাসপাতালে ছিল আকিব।

ফুটবল খেলার আলোচনাকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশ মাঠের পাশে আকিবকে কুপিয়েছে উঠতি বয়সী ১০-১২ কিশোর। বাবু নামের এক কিশোর আকিবের মাথায় পিস্তল ঠেকিয়ে বলে, ‘তোর টিকটক বানানো ছুটাইয়া দিমু।’

এ সময় কালু নামের এক কিশোর পেছন থেকে রড দিয়ে মাথায় আঘাত করে। বাবু নামের এক কিশোর চাকু দিয়ে তাকে উপর্যুপরি আঘাত করে। এতে ফুসফুস ফেটে যায়।

এ মামলার আসামিদের অনেককে জেলে পাঠানো হলেও পরে বের হয়ে তাকে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। সিফাত, শাহাদাত, জিহাদ ও বাবু প্রতিনিয়ত হুমকি দিচ্ছে তাকে। এ নিয়ে বংশাল থানায় ফের জিডি করেও কোনো প্রতিকার পায়নি আকিবের পরিবার।

গত ২৭ জুন পুরান ঢাকার কলতাবাজার এলাকায় রাত সাড়ে ৯টার দিকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী বাসার প্রয়োজনীয় বাজার নিয়ে বাসায় ফিরছিলেন। এ সময় কবি নজরুল কলেজের পাশে উইনস্টন গলিতে প্রবেশ করলে একটি ছেলে তাকে শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে।

এ ঘটনায় ভুক্তভোগী সেই ছাত্রী প্রথমে সূত্রাপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি ও পরে মামলা করলেও এখন পর্যন্ত কেউ শনাক্ত হয়নি। প্রভাবশালী কোনো নেতার ছত্রছায়ার কেউ এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে শনাক্ত হতে দেরি হচ্ছে, দাবি করেন ওই এলাকায় থাকা তার সহপাঠীরা। এ ছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়টির নাট্যকলা বিভাগের আরেক শিক্ষার্থীকে দুই কিশোর শারীরিকভাবে লাঞ্ছিত করে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক লক্ষ্মী বাজারের অনার্সের এক ছাত্রী বলেন, কিছুদিন আগে সন্ধ্যার দিকে লালকুঠিতে আমার এক বন্ধুর সঙ্গে বেড়াতে যাই। হঠাৎ সে সময় আমাদের ঘিরে ধরে ১০-১২ জন উঠতি বয়সী ছেলে। সবার চুল ও পোশাক দেখে বখাটে মনে হয়েছে। পরে চিৎকার দিয়ে আমরা চলে আসি।

পুরান ঢাকার বানিয়ানগরের কাঠের পুল লেনের বাসিন্দা জেসমিন আক্তার (ছদ্মনাম)। মেয়েসহ পরিবার নিয়ে যে নির্মাণাধীন ভবনে তারা থাকেন রাত হলেই সেখানে ভীতিকর পরিস্থিতি তৈরি হয়। প্রতিদিন ১০-১৫ জন কিশোর মাদক নিতে সেই ভবনে ওঠে। সবারই বয়স ১৫-২২ বছরের মধ্যে। মাদক গ্রহণসহ রাতে যেসব ফ্ল্যাটে মেয়ে আছে সেসব দরজায় তারা শব্দ করতে থাকেন অনবরত। তাদের অত্যাচারে ভবনের মালিক গেটে একাধিকবার তালা দিলেও সেটি ভেঙে ছাদে উঠে তারা। সারা রাত সেখানে মাদক সেবনসহ চিৎকার-চেঁচামেচি করে সকালে বের হয়।

তাদের বিপক্ষে কথা বললে উল্টো বিপদ আরও বাড়ে বলে জানান জেসমিন আক্তার। তিনি বলেন, ‘আমি চাকরি করি। কিছু বলতে পারি না, কারণ আমার ঘরে একটি মেয়ে রয়েছে। ওরা স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাদের ছত্রছায়ায় থাকে। পুলিশের কথা বললে তারা বলে, আমাদের বের হতে কয়েক মিনিটের ব্যাপার।’

এ এলাকা ছাড়াও পুরান ঢাকার লক্ষ্মীবাজার, শাঁখারীবাজার, কলতাবাজার, পানিটোলা, লালকুঠি, শ্যামবাজার, ইসলামপুর, বাবুবাজারসহ সদরঘাটের পার্শ্ববর্তী এলাকায় ফেরদৌস গ্রুপ, সাজু গ্রুপ, সিনিয়র গ্রুপ, জুনিয়র গ্রুপ, টাইগার গ্রুপ, চিতা গ্রুপ, বড় বাপের পোলাসহ অংসখ্য কিশোর গ্যাং গড়ে উঠেছে। প্রতিটি গ্যাংয়ে ২০ থেকে ২৫ জনের বেশি কিশোর রয়েছে।

এদের কেউ স্কুলের গণ্ডি পেরিয়েছে। কেউ এখনও পড়ছে। কেউ মাদকের মামলার আসামি। সন্ধ্যা হলেই পুরান ঢাকার গলিগুলো ভীতিকর অবস্থায় পরিণত হয়। গলিতে গলিতে জড়ো হয়ে চালায় বেপরোয়া মোটরসাইকেল।

এ ছাড়া আড্ডার সময় কোনো পথচারী, মেয়ে বা বৃদ্ধ রিকশাচালক সামনে পড়লে রেহাই নেই। কেউ হারায় কাছে থাকা অর্থ-সম্পদ সর্বস্ব। নারীরা হারায় সম্মান। হাতিয়ার হিসেবে তারা ব্যবহার করে ছুরি, চায়নিজ চাকু ও ব্লেড। বীরত্ব দেখাতে তুচ্ছ ঘটনায় প্রকাশ্যে রাস্তায় খুনোখুনি করতেও তাদের হাত কাঁপে না।

গত শবেবরাতের রাতে তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিহত হয় অন্তর নামের এক কিশোর। প্রথম তারাবির দিনেও একজন জখম হয়। এ ছাড়া তাদের মাধ্যমে ধর্ষণ ও ইভ টিজিংয়ের মতো ঘটনা অহরহ ঘটতে দেখা যায়।

স্থানীয়রা জানান, লক্ষ্মীবাজারের অনেক ভবনের ছাদে ছাদে চলে মাদকের আসর। বাংলাবাজার ও সদরঘাটে কর্মরত কম বয়সী কিশোর-যুবকরা স্থানীয়দের নিয়ে ছাদে মদ, গাঁজা ও জুয়ার আসর বসায় বলে অভিযোগ।

এতে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী। মাদকাসক্ত এসব কিশোর-যুবক সুযোগ পেলেই বাসার মধ্যে ঢুকে পড়ে চুরির মতো অপরাধে জড়ায়। তারা মাদকের টাকার জন্য ছিনতাইও করে।

পুরান ঢাকায় ছিনতাইয়ের অধিকাংশ ঘটনা কিশোর গ্যাংয়ের সদস্যদের মাধ্যমে হয়ে থাকে বলে জানা গেছে। গলির ভেতরে কাউকে একা পেলে দেশীয় অস্ত্র দিয়ে ভয় দেখিয়ে ছিনতাই করা হয়। স্থানীয় যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগের পদধারী বা নামধারী কোনো না কোনো ‘বড় ভাই’-এর শেল্টারে থাকায় ছিনতাইয়ের ভাগ এসব বড় ভাই ও নেতাদের দিতে হয়।

সার্বিক বিষয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞানের চেয়ারম্যান অধ্যাপক শিপ্রা সরকার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনা মহামারিতে উঠতি বয়সী ছেলেদের স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় বাইরে তাদের আড্ডা দেয়ার প্রবণতা বেড়েছে। বয়সন্ধিকালের এ সময়ে তারা কখন কী করবে বুঝে উঠতে পারে না। আবেগ ও অনুভূতি তাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে যায়। এসব কিশোর পরিবারের নিয়ন্ত্রণের মধ্যেও থাকে না।

‘আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা, দারিদ্র্য, পরিবারে ভাঙন ও প্রযুক্তির প্রভাবে তারা ছোট ছোট অপরাধ করতে করতে বড় অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে।’

তিনি বলেন, হতাশা ও সমাজের নানা পারিপার্শ্বিকতায় তারা অপরাধী হয়ে উঠছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আইন প্রয়োগের অভাবেও এসব অপরাধ বাড়ছে।

এ বিষয়ে ডিএমপির লালবাগ জোনের অতিরিক্ত উপকমিশনার (এডিসি) মুহিত কবীর সেরনিয়াবাত নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের কাছে এমন কিশোরদের তালিকা রয়েছে। সেই তালিকা অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে দ্বিতীয়বারের মতো অভিযান চলছে। এতে অনেককে আটক করা হয়েছে। বড় ধরনের অপরাধে জড়িতদের আইনের আওতায় আনা হচ্ছে।

‘আমরা সাম্প্রতিক সময়ে অনেককে ধরেছি। তাদের একেকজনের অপরাধ একেক রকম। যারা আড্ডার সময় মুরুব্বিদের ও মেয়েদের উত্ত্যক্ত করে তাদের ধরে তাদের পরিবারের মাধ্যমে সংশোধনের ব্যবস্থা করছি। এ ছাড়া যারা বড় ধরনের অপরাধ করছে, তাদের ধরে আইনের আওতায় আনা হচ্ছে। কারো কোনো অভিযোগ আমাদের জানালে আমরা অভিযান চালাব।’

আরও পড়ুন:
সাংবাদিক মাসউদের নামে মামলা প্রত্যাহার চায় এলআরএফ
নারী সহকর্মীর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের মামলায় সাংবাদিক কারাগারে
সমাজের অসংগতি তুলে ধরাই সাংবাদিকদের কাজ: হাইকোর্ট
হাইওয়ে থানায় ২ সাংবাদিকের ওপর হামলা
ব্যাংক হিসাব তলব: সাংবাদিকদের আশ্বাস তথ্যমন্ত্রীর

শেয়ার করুন

ভারতেও বাস ভাড়ায় ছাত্রদের ছাড় আছে

ভারতেও বাস ভাড়ায় ছাত্রদের ছাড় আছে

ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে বাসে শিক্ষার্থীদের ভাড়ায় ছাড় দেয়া হয়। ফাইল ছবি

ভারতের রাজ্যগুলোতে বাসভাড়ায় ছাত্রদের ছাড় দেয়া একটা সাধারণ নীতি বা রীতি, বিশেষ করে সরকারচালিত বা নিয়ন্ত্রিত বাসের ক্ষেত্রে। তবে কতটা ছাড় দেয়া হবে রাজ্য ভেদে তার নিয়ম ভিন্ন।

রেল ও বিমান ছাড়া ভারতের সড়ক পরিবহনে যাত্রীভাড়া নির্ধারণে কোনো জাতীয় নীতি নেই। সড়ক পরিবহনে যাত্রীভাড়া নির্ধারণ করে রাজ্য সরকার। আর বাস ভাড়ায় কনসেশন দেয়া হয় বেশির ভাগ রাজ্যেই।

সড়ক পরিবহনের যাত্রীভাড়ায় কাদের কতটা ছাড় দেয়া হবে, অথবা আদৌ ছাড় দেয়া হবে কি না, সেসব সিদ্ধান্ত রাজ্য সরকারের এক্তিয়ারভুক্ত। হঠাৎ মাথাচাড়া দেয়া সমস্যার সমাধানে কখনও কখনও জেলা প্রশাসনও স্থানীয়ভাবে উদ্যোগী হয়ে কিছু সিদ্ধান্ত নিতে পারে। যেমন বাস ভাড়ায় ছাত্রদের জন্য ছাড়।

ভারতের রাজ্যগুলোতে বাসভাড়ায় ছাত্রদের ছাড় দেয়া একটা সাধারণ নীতি বা রীতি, বিশেষ করে সরকারচালিত বা নিয়ন্ত্রিত বাসের ক্ষেত্রে। তবে কতটা ছাড় দেয়া হবে রাজ্য ভেদে তার নিয়ম ভিন্ন।

যেমন নয়া দিল্লি। ভারতের রাজধানী শহরে বাস চলে পুরোপুরি দিল্লি ট্রান্সপোর্ট করপোরেশনের (ডিটিসি) নিয়ন্ত্রণে। ডিটিসির সাধারণ বাসে ছাত্রদের জন্য একটি মাসিক কার্ড পাওয়া যায় ১০০ টাকায়। ওই কার্ডে দিল্লির মধ্যে যেকোনো রুটে যাতায়াত করা যায়। বিশেষ বাসের জন্য ওই কার্ডের দাম ১৫০ টাকা। তবে শীততাপনিয়ন্ত্রিত বাসে ওই কার্ড প্রযোজ্য নয়।

আবার জম্মু-কাশ্মীরে পরিবহন নিয়ন্ত্রণ বিভাগ গত ২৫ ফেব্রুয়ারি বিজ্ঞপ্তি জারি করে নির্দেশ দিয়েছে সরকারি, বেসরকারি সব বাসে যাত্রীভাড়ায় ৫০ শতাংশ ছাড় দিতে হবে। তবে এই ছাড় শুধুমাত্র বাসস্থান থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে যাওয়া এবং ফিরে আসার জন্য। বাসে দেখাতে হবে ছাত্রের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পরিচয়পত্র। কোনো বাস যদি সরকারি নির্দেশ না মানে তবে ছাত্ররা অভিযোগ জানাতে পারে নির্দিষ্ট হেল্পলাইন নম্বরে।

মহারাষ্ট্রের মুম্বাই শহরে বৃহৎ মুম্বাই বৈদ্যুতিক সরবরাহ এবং পরিবহন (বেস্ট) পরিচালিত বাসগুলোতেও শিক্ষার্থীদের একই ধরনের ছাড় দেয়া হয়।

তাদের একটি মাসিক ফর্ম আছে। এটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের স্ট্যাম্পসহ যেকোনো ডিপোতে জমা দিতে হয়। তারা শিক্ষার্থীদের এটিএম কার্ডের মতো একটি কার্ড প্রদান করে। এটি শুধু বাড়ি থেকে স্কুল-কলেজে নন এসি বাসে যাওয়া-আসার জন্য কার্যকর।

মহারাষ্ট্রের নাসিক শহরে বাস নিয়ন্ত্রণ করে সেখানকার পৌর সংস্থা। নাসিক মিউনিসিপ্যাল করপোরেশনের অধীন নাসিক মহানগর পরিবহন মহামন্ডল লিমিটেডের বাসে শিক্ষার্থীরা এক মাসের জন্য নির্দিষ্ট রুটে ৫০ শতাংশ এবং তিন মাসের জন্য ৬৬ শতাংশ ছাড় পায়। একমাসের মাসিক টিকিটের মূল্য ১ হাজার ৫০০ রুপি । ছাত্রদের দিতে হয় ৭৫০ রুপি।

শিক্ষার্থীদের বাসভাড়া ছাড় দেয়ায় দক্ষিণ ভারতের রাজ্য তামিলনাড়ু অন্যদের থেকে অনেকটাই আলাদা। ওই রাজ্যে বাস চলাচল নিয়ন্ত্রণ করে সরকার নিয়ন্ত্রিত সাতটি পরিবহন করপোরেশন।

২০১৫ সালে রাজ্য সরকার কমিউনিটি কলেজ, সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত বেসরকারি আইটিআই, সঙ্গীত কলেজ এবং চেন্নাই করপোরেশন আইটিআইগুলোর ছাত্রদের জন্য বিনামূল্যে ভ্রমণ সুবিধা প্রসারিত করেছিল। সুবিধা পেয়েছিলেন ৩২ লাখের বেশি ছাত্র।

এ ছাড়া ওই রাজ্যে বেসরকারি আর্টস অ্যান্ড সায়েন্স কলেজ, পলিটেকনিক ও ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজের শিক্ষার্থীদের সরকারি বাসে ৫০ শতাংশ ফি ছাড় দেয়া হয়।

২০১৩ সাল পর্যন্ত শুধু স্কুল ও সরকারি কলেজ, পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট এবং আইটিআই-এর ছাত্রদের জন্য বিনামূল্যে ভ্রমণের অনুমতি দেয়া হয়েছিল। ২০১৩-১৪ সাল পর্যন্ত বিনামূল্যে ভ্রমণের মাধ্যমে পরিবহন করপোরেশনগুলোর ব্যয় প্রতি বছর ৪৪০-৪৫০ কোটি রুপি ছিল। পরবর্তী কয়েক বছরে তা বেড়ে ৭৩০ কোটি রুপি হয়।

দক্ষিণ ভারতের আর একটি রাজ্য কেরালা। বামজোটশাসিত এই রাজ্যেও বাসভাড়ায় ছাত্রদের জন্য ছাড় আছে। ২০১২ সালে সেখানে শেষবার বাসভাড়ায় পরিবর্তন হয়েছিল। তখন ছাত্রদের জন্য নূন্যতম ভাড়া ছিল ১ রুপি।

সম্প্রতি সেখানে বেসরকারি বাস মালিকরা ভাড়া বৃদ্ধির দাবি জানিয়েছে। এ নিয়ে সরকারের সঙ্গে আলোচনা চলছে। এখন পর্যন্ত যা খবর তাতে নূন্যতম সাধারণ যাত্রীভাড়া হতে পারে ১০ রুপি। ছাত্রদের ক্ষেত্রে নূন্যতম ভাড়া ৫ রুপি করার প্রস্তাব আছে। বাস মালিকরা চাইছে ৬ টাকা করতে। অর্থাৎ ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ ছাড় পাবে ছাত্ররা।

বাস ভাড়ায় শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে খুবই করুন অবস্থা পশ্চিমবঙ্গে। এ বিষয়ে সেখানকার এক ছাত্র ফেসবুক পোস্টে লিখেছেন, ‘আমি আশা করি, অধিকাংশ ছাত্রই জানে না যে ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্রান্সপোর্ট করপোরেশনের বাসে ছাত্রদের জন্য বিশেষ ভাড়া রয়েছে। আপনি যদি কন্ডাক্টরকে একজন ছাত্র ভাড়া টেন্ডার করতে বলেন তাহলে আপনি মূল ভাড়ার উপর ফ্ল্যাট ২৫ শতাংশ ছাড় পাবেন। হ্যাঁ, অনেক কন্ডাক্টর ডিসকাউন্ট রেট দিতে অস্বীকার করতে পারে, তবে আপনি তাকে নিচের উল্লিখিত পদ্ধতিতে গাইড করতে পারেন।’

অর্থাৎ ছাত্র, বাসের কন্ডাক্টর কেউই জানেন না বাস ভাড়ায় শিক্ষার্থীদের ছাড়ের বিষয়টি।

এই প্রতিবেদনটা লেখার সময় পশ্চিমবঙ্গের অন্তত পাঁচজনের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। তাদের মধ্যে তিনজন মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক স্কুলের শিক্ষক।

একজন বলেছেন, ‘এ বিষয়ে সরকারের কোনো নিয়মের কথা জানি না। তবে আসানসোল, বরাকর, বার্নপুর, রানীগঞ্জ অঞ্চলে মিনি বাসে ছাত্র কনসেশন আছে বাস মালিকদের সংগঠনের সৌজন্যে।’

আবার মেদিনীপুরের একজন বলেছেন, ‘পূর্ব এবং পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় ছাত্রদের বাস ভাড়ায় এক-তৃতীয়াংশ ছাড় দেয়া হয়।’

দক্ষিণ চব্বিশ পরগণার এক শিক্ষক বলেছেন, ‘এ ব্যাপারে তার কিছু জানা নেই।’

অর্থাৎ বাস ভাড়ায় ছাত্রদের ছাড় দেবার ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গে আছে বিশৃঙ্খলা।

আরও পড়ুন:
সাংবাদিক মাসউদের নামে মামলা প্রত্যাহার চায় এলআরএফ
নারী সহকর্মীর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের মামলায় সাংবাদিক কারাগারে
সমাজের অসংগতি তুলে ধরাই সাংবাদিকদের কাজ: হাইকোর্ট
হাইওয়ে থানায় ২ সাংবাদিকের ওপর হামলা
ব্যাংক হিসাব তলব: সাংবাদিকদের আশ্বাস তথ্যমন্ত্রীর

শেয়ার করুন

স্কুল-কলেজের নতুন এমপিওভুক্তি কবে?

স্কুল-কলেজের নতুন এমপিওভুক্তি কবে?

আগামী মাসে নতুন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তির ঘোষণার আভাস দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা

এমপিওভুক্তির যাচাই-বাছাই কমিটির এক সদস্য নিউজবাংলাকে জানান, আগামী মাসে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেয়া হতে পারে। তবে সব কিছু নির্ভর করছে সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্তের ওপর। গতবারের মতো এবারও প্রধানমন্ত্রী নতুন এমপিওভুক্তির ঘোষণা দিতে পারেন।

নতুন অর্থবছরে বেসরকারি নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করার প্রক্রিয়া চলছে। এরই মধ্যে শেষ হয়েছে আবেদন-প্রক্রিয়া। এখন চলছে আবেদন যাচাই-বাছাই। তবে কবে নাগাদ বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করার ঘোষণা দেয়া হবে, এ বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত জানায়নি সরকার।

আগামী মাসে নতুন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেয়া হতে পারে বলে আভাস দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

এমপিও হলো মান্থলি পে অর্ডার বা মাসিক বেতন আদেশ, যার মাধ্যমে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও কর্মচারীদের বেতন ওই প্রতিষ্ঠানের বদলে পরিশোধ করে সরকার।

জানতে চাইলে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিও যাচাই-বাছাই কমিটির আহ্বায়ক মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ফৌজিয়া জাফরীন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য যে আবেদনগুলো পেয়েছি, তা এখন যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।’

কবে নাগাদ এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেয়া হবে, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘কাজ চলছে। দিন-তারিখ এখনই বলা সম্ভব নয়।’

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির যাচাই-বাছাই কমিটির এক সদস্য নিউজবাংলাকে বলেন, ‘অনলাইনে আবেদন নেয়ায় কাজ অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে। দ্রুতই এ বিষয়ে মিটিং অনুষ্ঠিত হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আশা করছি, আগামী মাসে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেয়া হতে পারে। তবে সব কিছু নির্ভর করছে সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্তের ওপর। কেননা গতবারের মতো এবারও প্রধানমন্ত্রী নতুন এমপিওভুক্তির ঘোষণা দিতে পারেন।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, সব মিলিয়ে এমপিওভুক্তির জন্য প্রায় ৬ হাজার আবেদন জমা হয়েছে। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক এবং ডিগ্রি স্তরের ৩ হাজার এবং কারিগরি, ভোকেশনাল ও মাদ্রাসা স্তরের ৩ হাজার।

এর আগে গত ৭ নভেম্বর বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির আবেদন যাচাই-বাছাইয়ের জন্য ৯ সদস্যের কমিটি গঠন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে এই কমিটিকে সহায়তা করতে আরও চার সদস্যের একটি উপকমিটিও গঠন করা হয়।

৯ সদস্যের কমিটির আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (মাধ্যমিক-২) ফৌজিয়া জাফরীন। কমিটিতে আছেন শিক্ষা তথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরোর (ব্যানবেইস) মহাপরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের কলেজ শাখার যুগ্ম সচিব, বেসরকারি মাধ্যমিক (১) শাখার উপসচিব, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রশাসন শাখার পরিচালক, ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের বাজেট শাখার সিনিয়র সহকারী সচিব, ব্যানবেইসের সিনিয়র সিস্টেম অ্যানালিস্ট এবং বেসরকারি মাধ্যমিক-৩ শাখার উপসচিব।

এ কমিটিকে সহায়তা করবে ব্যানবেইসের সিনিয়র সিস্টেম অ্যানালিস্ট মো. আবু তাহের খানের নেতৃত্বে চার সদস্যের কমিটি। এ কমিটিতে আছেন ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক, ব্যানবেইসের প্রোগ্রামার এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রোগ্রামার।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (স্কুল ও কলেজ) এমপিওভুক্ত করতে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। বিজ্ঞপ্তিতে ১০ থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করতে বলা হয়।

২০১৯ সালে ২ হাজার ৬২২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করার পর গত বছর আর তা করা হয়নি।

নতুন অর্থবছরের বাজেট বরাদ্দের যে প্রস্তাব শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো হয়েছে, তাতে নতুন প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তির জন্য ২৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার কথা বলা হয়েছে। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের জন্য ২০০ কোটি টাকা এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের জন্য ৫০ কোটি টাকা।

২০১৯ সালের ২৩ অক্টোবর ২ হাজার ৭৩০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী। পরে চূড়ান্ত বাছাইয়ে ২ হাজার ৬১৫টি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ছাড়পত্র পায়। এরপর আবার ২০১৯ সালের ১২ নভেম্বর ছয়টি এবং ১৪ নভেম্বর একটি প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করা হয়।

দেশে এ পর্যন্ত এমপিওভুক্ত হয়েছে এমন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা প্রায় ৩৩ হাজার। আর এমপিওভুক্ত হয়নি এখনও প্রায় ৭ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার জন্য গত ২৯ মে সংশোধিত এমপিও নীতিমালা প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সংশোধিত নীতিমালায় এমপিওভুক্তির জন্য তিনটি শর্ত দেয়া হয়েছে।

শিক্ষার্থী ও পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এবং পাবলিক পরীক্ষায় পাসের হার- এই তিন বিষয়ে মোট ১০০ নম্বরের মধ্যে শিক্ষার্থীর সংখ্যায় ৩০, পরীক্ষার্থীর সংখ্যায় ৩০ এবং পাসের হারে ৪০ নম্বর রাখা হয়েছে। আগের নীতিমালায় প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতির মেয়াদের ওপর ২৫ নম্বর ছিল, যা সংশোধিত নীতিমালায় বাদ দেয়া হয়েছে।

২০২১ সালের নীতিমালায় কোন ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ন্যূনতম কতজন শিক্ষার্থী থাকতে হবে, তা বেঁধে দেয়া হয়েছে।

নীতিমালা অনুযায়ী, নিম্ন মাধ্যমিকে শহরে ১২০ ও মফস্বলে ৯০, মাধ্যমিকে শহরে ২০০ ও মফস্বলে ১৫০, উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শহরে ৪২০ ও মফস্বলে ৩২০, উচ্চ মাধ্যমিক কলেজে শহরে ২৫০ ও মফস্বলে ২২০ এবং ডিগ্রি কলেজে স্নাতকে শহরে ৪৯০ ও মফস্বলে ৪২৫ শিক্ষার্থী থাকতে হবে। পাসের হার স্তরভেদে ৪৫ থেকে সর্বোচ্চ ৭০ শতাংশ করা হয়েছে।

গত ৩ জুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জাতীয় সংসদে যে বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করেন, তাতে শিক্ষা খাতে ৭১ হাজার ৯৫১ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার কথা বলা হয়েছে। চলতি অর্থবছরে বরাদ্দ ছিল ৬৬ হাজার ৪০০ কোটি টাকা। বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে ৫ হাজার ৫৫১ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন:
সাংবাদিক মাসউদের নামে মামলা প্রত্যাহার চায় এলআরএফ
নারী সহকর্মীর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের মামলায় সাংবাদিক কারাগারে
সমাজের অসংগতি তুলে ধরাই সাংবাদিকদের কাজ: হাইকোর্ট
হাইওয়ে থানায় ২ সাংবাদিকের ওপর হামলা
ব্যাংক হিসাব তলব: সাংবাদিকদের আশ্বাস তথ্যমন্ত্রীর

শেয়ার করুন

ইউনিক আইডি: ফরম পূরণে ভোগান্তির শেষ নেই

ইউনিক আইডি: ফরম পূরণে ভোগান্তির শেষ নেই

ইউনিক আইডিতে থাকবে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর মৌলিক ও শিক্ষা সংক্রান্ত সব তথ্য। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা

এক অভিভাবক বললেন, ‘বাচ্চার ইউনিক আইডির জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে বাবা-মায়ের জন্ম নিবন্ধন চাওয়া হচ্ছে। আমাদের জাতীয় পরিচয়পত্র আছে। তাহলে কেন আবার জন্মনিবন্ধন লাগবে?’

দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত সব শিক্ষার্থীর জন্য ইউনিক আইডি তৈরির উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এতে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর মৌলিক ও শিক্ষাসংক্রান্ত সব তথ্য থাকবে। এ আইডির জন্য প্রয়োজনীয় ফরম পূরণ করতে গিয়ে প্রক্রিয়াগত জটিলতায় ব্যাপক ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে শিক্ষার্থী-অভিভাবকদের।

রাজধানীর ইস্কাটন গার্ডেন স্কুলে অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থীর ইউনিক আইডির কাগজপত্র নিয়ে মঙ্গলবার স্কুলে আসেন অভিভাবক ওয়াহিদুর রহমান। স্কুল কর্তৃপক্ষ তাকে জানায়, শিক্ষার্থীর ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধনের সঙ্গে অভিভাবকের ডিজিটাল জন্ম নিবন্ধনও লাগবে। তা না হলে তার ইউনিক আইডির কাগজ জমা নেয়া হবে না।

একই অভিযোগ করেন রাজধানীর একাধিক বিদ্যালয়ের অভিভাবকরা। তেমনই একজন তাসমিয়া বিনতে জামান। তিনি বলেন, ‘বাচ্চার ইউনিক আইডির জন্য শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে বাবা-মায়ের জন্ম নিবন্ধন চাওয়া হচ্ছে। আমাদের জাতীয় পরিচয়পত্র আছে। তাহলে কেন আবার জন্ম নিবন্ধন লাগবে?’

তবে ভিন্ন অভিজ্ঞতার কথা শোনালেন তমাল পাল। তিনি বলেন, ‘আমার মেয়ে ইস্পাহানি গার্লস স্কুলে নবম শ্রেণিতে পড়ে। ইউনিক আইডির ফরমের সঙ্গে প্রয়োজনীয় সব কাগজ জমা দেয়ার পর হঠাৎ করে স্কুল থেকে ফোন করে জানায়, রক্তের গ্রুপ নির্ণয়ের কাগজ জমা দিতে হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ওর রক্তের গ্রুপ তো ছোট্ট সময়েই নির্ণয় করে রেখেছি। ইউনিক আইডির জন্য এখন আবার রক্তের গ্রুপ নির্ণয় করতে হলো। এ জন্য অতিরিক্ত টাকা ব্যয় করতে হলো।’

অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন করতে কিছু শিক্ষার্থী এবং অভিভাবকের নানা ভোগান্তিতে পড়ার কথা স্বীকার করেন ইউনিক আইডির প্রকল্প পরিচালক শামসুল আলম। তিনি বলেন, ‘এ ক্ষেত্রে আসলে আমাদের কিছুই করার নেই। জন্ম নিবন্ধন অনলাইনে এন্ট্রি দেয়ার জন্য অফিস অফ রেজিস্ট্রার জেনারেলের কার্যালয় অনেক আগেই অফিস আদেশ জারি করেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তির ক্ষেত্রে এখন জন্ম নিবন্ধন বাধ্যতামূলক। তাই আমরা ধরে নিতেই পারি, সব শিক্ষার্থীর জন্ম নিবন্ধন আছে। যারা স্কুলে ভর্তিই হয়নি, তাদের জন্ম নিবন্ধন নাও থাকতে পারে।

‘সমস্যা হলো, জন্ম নিবন্ধনের কোনোটা ম্যানুয়াল, কোনোটা ডিজিটাল। যেসব শিক্ষার্থীর জন্ম নিবন্ধন ম্যানুয়াল, তাদের ডিজিটাল অর্থাৎ অনলাইনে এন্ট্রি দেয়া জন্ম নিবন্ধন লাগবে। কারণ ইউনিক আইডি দেয়ার অন্যতম শর্ত হলো শিক্ষার্থীর বাবা-মায়ের জাতীয় পরিচয়পত্র বা অনলাইন জন্ম নিবন্ধনের সঙ্গে মিল থাকতে হবে শিক্ষার্থীর জন্ম নিবন্ধনের।

‘যদি কোনো শিক্ষার্থীর বাবা-মায়ের জাতীয় পরিচয়পত্র না থাকে, সে ইউনিক আইডি পাবে না। কারণ আমরা শিক্ষার্থীদের তথ্যগুলো পাঠাব অফিস অফ রেজিস্ট্রার জেনারেলের কার্যালয়ে। তারপর সেখান থেকে যাবে নির্বাচন কমিশনে। এরপর তারা ইউনিক আইডি তৈরি করবে। এটাই সিস্টেম। এ জন্য কোনো শিক্ষার্থীর যদি অনলাইন জন্ম নিবন্ধন না থাকে, তাহলে সে ইউনিক আইডি পাবে না।’

শিক্ষার্থীর জন্ম নিবন্ধনে বাবা-মায়ের জন্ম নিবন্ধন কেন প্রয়োজন হয়, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘বর্তমানে অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন করতে গেলে শিক্ষার্থীর বাবা-মায়ের জন্ম নিবন্ধন আগে করে নিতে হবে। এটা জন্ম ও মৃত্যু নিবন্ধন আইন-২০১৯ অনুযায়ী করা হচ্ছে। সেখানে স্পষ্ট করে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের সব নাগরিকের জন্ম নিবন্ধন করা বাধ্যতামূলক। যদি কেউ তা না করে তাহলে তা শাস্তিযোগ্য অপরাধ।’

যেসব শিক্ষার্থীর বাবা-মায়ের জন্ম নিবন্ধন নেই, তাদের করণীয় কী, এমন প্রশ্নে শামসুল আলম বলেন, ‘যেসব শিক্ষার্থীর অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন ইতিমধ্যে করা আছে, তাদের বাবা-মায়ের শুধু জাতীয় পরিচয়পত্র থাকলেই শিক্ষার্থী ইউনিক আইডি পাবে। আর যেসব শিক্ষার্থীর অনলাইনে জন্ম নিবন্ধন এখনও করা হয়নি, তাদের জন্ম নিবন্ধন করতেও বাবা-মায়ের অনলাইন জন্ম নিবন্ধন লাগবে। এটা আইনে স্পষ্ট উল্লেখ আছে।’

রক্তের গ্রুপ নির্ণয়ের কাগজ ইউনিক আইডির ফরমের সঙ্গে দেয়া বাধ্যতামূলক কি না, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, রক্তের গ্রুপ নির্ণয়ের কাগজ ইউনিক আইডির ফরমের সঙ্গে দেয়া বাধ্যতামূলক না। তবে কিছু স্কুল কর্তৃপক্ষ ইউনিক আইডির ফরমের সঙ্গে রক্তের গ্রুপের কাগজ নিচ্ছে, যেন ফরমে দেয়া তথ্য ভুল না হয়।

ইউনিক আইডি: ফরম পূরণে ভোগান্তির শেষ নেই

‘ইউনিক আইডি’র তথ্য পূরণের ক্ষেত্রে পাঁচটি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

ইউনিক আইডি কেন

প্রত্যেক শিক্ষার্থীর মৌলিক ও শিক্ষাসংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য এক জায়গায় রাখার জন্য তৈরি করা হচ্ছে ইউনিক আইডি। শিক্ষার্থীর বয়স ১৮ বছর পূর্ণ হলে এই আইডি জাতীয় পরিচয়পত্রে (এনআইডি) রূপান্তরিত হবে।

ষষ্ঠ থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি তৈরির দায়িত্বে আছে বাংলাদেশ শিক্ষা তথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরো (ব্যানবেইজ)। আর প্রাক-প্রাথমিক থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের ইউনিক আইডি তৈরি করছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর।

কেন শিক্ষার্থীদের জন্য ইউনিক আইডি তৈরি করা হচ্ছে- এমন প্রশ্নে প্রকল্প পরিচালক অধ্যাপক শামসুল আলম বলেন, ‘কোনো শিশু জন্মগ্রহণ করলেই স্থানীয় সরকার বিভাগের অফিস অফ রেজিস্ট্রার জেনারেলের আওতায় তার জন্ম নিবন্ধন হয়। আর ১৮ বছর পূর্ণ হওয়া সবার জন্য আছে জাতীয় পরিচয়পত্র। কিন্তু যারা প্রাইমারি, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিকের শিক্ষার্থী, অর্থাৎ যাদের বয়স ১৮-এর নিচে তারা এই সিস্টেমের বাইরে। এ জন্য তাদের সিস্টেমের মধ্যে আনতেই ইউনিক আইডি তৈরির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।’

ফরমে যেসব তথ্য দিতে হয়

স্ট্যাবলিশমেন্ট অফ ইন্টিগ্রেটেড এডুকেশনাল ইনফরমেশন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (আইইআইএমএস) প্রকল্পের আওতায় তৈরি করা চার পৃষ্ঠার ফরমে শিক্ষার্থীদের তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে।

ফরমে শিক্ষার্থীর নাম, জন্ম নিবন্ধন নম্বর, জন্মস্থান, জেন্ডার, জাতীয়তা, ধর্ম, অধ্যয়নরত শ্রেণি, রোল নম্বর, বৈবাহিক অবস্থা, প্রতিবন্ধিতা (ডিজ-অ্যাবিলিটি), রক্তের গ্রুপ, ক্ষুদ্র নৃগোষ্ঠী কি না, মা-বাবার নামসহ বেশ কিছু তথ্যের ঘর রয়েছে।

বৈবাহিক অবস্থার অপশন হিসেবে অবিবাহিত, বিবাহিত, বিধবা, বিপত্নীক ছাড়াও স্বামী-স্ত্রী পৃথক বসবাস, তালাকপ্রাপ্ত, বিয়েবিচ্ছেদের ঘরও রয়েছে ফরমে।

আরও পড়ুন:
সাংবাদিক মাসউদের নামে মামলা প্রত্যাহার চায় এলআরএফ
নারী সহকর্মীর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের মামলায় সাংবাদিক কারাগারে
সমাজের অসংগতি তুলে ধরাই সাংবাদিকদের কাজ: হাইকোর্ট
হাইওয়ে থানায় ২ সাংবাদিকের ওপর হামলা
ব্যাংক হিসাব তলব: সাংবাদিকদের আশ্বাস তথ্যমন্ত্রীর

শেয়ার করুন

কয়লা বাদ দিয়ে হালনাগাদ হচ্ছে বিদ্যুতের মহাপরিকল্পনা

কয়লা বাদ দিয়ে হালনাগাদ হচ্ছে বিদ্যুতের মহাপরিকল্পনা

বিদ্যুৎ খাতের মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়ন করা হয় ২০১০ সালে। ২০৩০ সাল পর্যন্ত প্রণীত এ পরিকল্পনায় ধাপে ধাপে মোট ৪০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা রাখা হয়। এর মধ্যে কয়লাভিত্তিক কেন্দ্র ছিল ৫০ শতাংশ। এই মাস্টারপ্ল্যান ২০১৬ সালে হালনাগাদ করা হয়। তাতে ২০৪১ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন জ্বালানিভিত্তিক ৬০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতের উৎপাদন পরিকল্পনা দেখানো হয়। এতে কয়লার ব্যবহার ৩৫ শতাংশে নামিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়।

বৈশ্বিক জ্বালানি বাজারের অস্থিতিশীলতা ও জলবায়ুর ক্ষতিকর পরিবর্তন সামনে রেখে বিদ্যুৎ খাতের মাস্টারপ্ল্যানে (পিএসএমপি) পরিবর্তন আসছে। জ্বালানি খাত অন্তর্ভুক্ত করে সমন্বিত মাস্টারপ্ল্যান (পিইএমপি) প্রণয়নের কাজ চলছে।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ নিউজবাংলাকে বলেন, সমন্বিত বিদ্যুৎ ও জ্বালানি মাস্টারপ্ল্যান জ্বালানি নিরাপত্তা ও নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ নিশ্চিত করতে সহযোগিতা করবে।

‘এই মহাপরিকল্পনায় ২০৫০ সাল অবদি জ্বালানি ও বিদ্যুৎ খাত উন্নয়নের পরিকল্পনা এবং দিকনির্দেশনা রয়েছে। অংশীজনদের সঙ্গে আলোচনা করে এটি চূড়ান্ত করা হবে।’

জ্বালানি বিভাগের মতে, মহাপরিকল্পনায় পরিবেশ দূষণ রোধে ভবিষ্যতের বিদ্যুৎ উৎপাদন পরিকল্পনায় কয়লার ব্যবহার কমানো হচ্ছে। বিপরীতে বাড়ানো হবে আমদানি করা গ্যাসভিত্তিক (এলএনজি) বিদ্যুৎ প্রকল্পের সংখ্যা। জোর দেয়া হবে নবায়নযোগ্য জ্বালানির ওপরও।

মহাপরিকল্পনা প্রণয়নের অংশ হিসেবে বিদ্যুৎ-জ্বালানি সঞ্চালন ও বিতরণ এবং মূল্য ও সরবরাহব্যবস্থা নিয়েও আলোচনা করা হবে।

জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন এজেন্সি-জাইকা এই মহাপরিকল্পনা প্রণয়নে সহযোগিতা করছে। এ জন্য ইতিমধ্যে একটি স্টিয়ারিং কমিটি গঠিত হয়েছে। এর অধীনে খাতভিত্তিক কয়েকটি কারিগরি কমিটিও গঠন করা হয়েছে। জাইকাকে এ কাজে সহযোগিতা করছে স্থানীয় দুটি ফার্ম।

বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বিদ্যমান মাস্টারপ্ল্যান পর্যালোচনা করে প্রযুক্তি ও নীতিমালা যুগোপযোগী করা, জ্বালানি তথ্য ব্যবস্থাপনা সিস্টেম উন্নয়ন করা, প্রাথমিক জ্বালানি সরবরাহ চূড়ান্ত করে বিশ্লেষণ, চাহিদার পূর্বাভাস, পাওয়ার সিস্টেম পরিকল্পনা গ্রহণ, এলএনজি আমদানি, পরিবেশ ও সামাজিক অবস্থা বিবেচনা- এই সমন্বিত মহাপরিকল্পনায় স্থান পেয়েছে। এখানে চাহিদার পূর্বাভাস বিষয়ে বিভিন্ন মডেল তুলে ধরা হয়েছে।

নসরুল হামিদ বলেন, ন্যাশনাল ডিটারমাইন্ড কন্ট্রিবিউশন (এনডিসি) ২০৩০ সালের মধ্যে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত ৪৮ দশমিক ৯ শতাংশ গ্রিন হাউস গ্যাস কমানোর লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে। সোলার হোম সিস্টেম স্থাপনে বাংলাদেশ সারা বিশ্বের মধ্যে শীর্ষস্থানে রয়েছে। সরকার কার্বন নিঃসরণ কমানোকে প্রাধান্য দিয়ে উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা করছে।

বিদ্যুৎ বিভাগ জানায়, মহাপরিকল্পনা প্রণয়নে জলবায়ু পরিবর্তন রোধে বাংলাদেশের অঙ্গীকারকে গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করা হচ্ছে। বাস্তবায়ন অগ্রগতি কম- এমন ১০টি কয়লাভিত্তিক প্রকল্প ইতিমধ্যে বাতিল করা হয়েছে। উদ্যোক্তারা চাইলে কয়লার পরিবর্তে এই প্রকল্পগুলো এলএনজিভিত্তিক করার উদ্যোগ নিতে পারে।

দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া ও পটুয়াখালীর পায়রায় কয়লাভিত্তিক তিনটি বিদ্যুৎকেন্দ্র চালু রয়েছে। এগুলোর উৎপাদনক্ষমতা এক হাজার ৬৮৮ মেগাওয়াট, যা মোট উৎপাদনের ৮ শতাংশ। নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন হচ্ছে ৩ শতাংশ বা ৭২২ মেগাওয়াট, যা ২০৩০ সালের মধ্যে ২০ শতাংশে উন্নীত করার চিন্তা রয়েছে সরকারের।

প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরামের (সিভিএফ) প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হওয়ায় বিদ্যুৎ বিভাগ গ্রিন ও ক্লিন এনার্জির প্রসারে জোর দিয়েছে। তাছাড়া কপ-২৬-এ বাংলাদেশ প্রতিশ্রুতি দিয়েছে, ২০৫০ সালের মধ্যে নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে প্রায় ৪০ শতাংশ বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হবে। তাই পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর নয় এমন জ্বালানি থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদনে জোর দেয়া হচ্ছে। প্রযুক্তির উন্নতি হচ্ছে, সোলার বিদ্যুতের উৎপাদন খরচ কমে আসছে। এ খাতে আরও উন্নতির সুযোগ রয়েছে।

পাওয়ারসেলের মহাপরিচালক মোহাম্মদ হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, সারা বিশ্ব পরিবেশবান্ধব জ্বালানির দিকে ঝুঁকছে। চীন কয়লার ব্যবহার কমানোর ঘোষণা দিয়েছে। বিশ্বব্যাংকসহ উন্নয়ন সহযোগী অনেক সংস্থাও কয়লাভিত্তিক প্রকল্পে বিনিয়োগ না করার ঘোষণা দিয়েছে। সব মিলিয়ে সামনে নবায়নযোগ্য জ্বালানি ও নিউক্লিয়ার বিদ্যুতের ব্যবহার বাড়বে। বাংলাদেশও সেদিকে এগোচ্ছে।

হালনাগাদ হচ্ছে মাস্টারপ্ল্যান

জাইকার সহযোগিতায় বিদ্যুৎ খাতের মাস্টারপ্ল্যান প্রণয়ন করা হয় ২০১০ সালে। ২০৩০ সাল পর্যন্ত প্রণীত এ পরিকল্পনায় ধাপে ধাপে মোট ৪০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা রাখা হয়। এর মধ্যে কয়লাভিত্তিক কেন্দ্র ছিল ৫০ শতাংশ। এই মাস্টারপ্ল্যান ২০১৬ সালে হালনাগাদ করা হয়। তাতে ২০৪১ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন জ্বালানিভিত্তিক ৬০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতের উৎপাদন পরিকল্পনা দেখানো হয়। এতে কয়লার ব্যবহার ৩৫ শতাংশে নামিয়ে আনার লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়।

জ্বালানি বিভাগ বলছে, বিদ্যুতের মাস্টারপ্ল্যান হালনাগাদে কয়লার ব্যবহার কমবে। গ্রিন ও ক্লিন এনার্জির দিকে বেশি জোর দেয়া হবে।

বাতিল ১০ বিদ্যুৎ প্রকল্প

কয়লা বাদ দিয়ে হালনাগাদ হচ্ছে বিদ্যুতের মহাপরিকল্পনা
মাতারবাড়ি কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্প।

তালিকায় বাদ পড়া কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে- সরকারি প্রতিষ্ঠান আশুগঞ্জ পাওয়ার কোম্পানির (এপিএসসিএল) পটুয়াখালী এক হাজার ৩২০ ও উত্তরবঙ্গে এক হাজার ২০০ মেগাওয়াট (গাইবান্ধা) কেন্দ্র এবং ওরিয়নের মাওয়া ৫২২, ঢাকা ২৮২, চট্টগ্রাম ২৮২ ও খুলনা ৫৬৫ মেগাওয়াট কেন্দ্র। এর মধ্যে খুলনার কেন্দ্রটির স্থান পরিবর্তন করে মহেশখালীতে ৭২৬ মেগাওয়াটের এলএনজিভিত্তিক করার প্রস্তাব দিয়েছে ওরিয়ন।

মহেশখালীতে বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াট করে দুটি প্রকল্প বাতিল করেছে সরকার। এর একটি নির্মাণ করার কথা ছিল পিডিবি ও চায়না হুয়াদিয়ান হংকং (সিএইচডিএইচকে) কোম্পানির যৌথ অংশীদারত্বে প্রতিষ্ঠিত বে অব বেঙ্গল পাওয়ার কোম্পানি। এটি কয়লার পরিবর্তে এলএনজিভিত্তিক প্রকল্পে রূপান্তর হতে পারে। মহেশখালীর অন্য প্রকল্পটি দক্ষিণ কোরিয়ার কেপকোর সঙ্গে যৌথ অংশীদারত্বে নির্মাণের কথা ছিল।

বাতিলের তালিকায় আরও রয়েছে মাতারবাড়ীতে প্রস্তাবিত কোল পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানির (সিপিজিসিবিএল) এক হাজার ২৫০ মেগাওয়াট প্রকল্প। জাপানের সুমিতোমোর সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে এটি নির্মাণের কথা ছিল। এ প্রকল্পটি এলএনজিভিত্তিক প্রকল্পে রূপান্তরিত হতে পারে। এ ছাড়া কোল পাওয়ার কোম্পানির ৭০০ মেগাওয়াটের একটি প্রকল্প বাতিল করা হয়েছে। সিঙ্গাপুরের সিম্বকোর্পের সঙ্গে যৌথ অংশীদারত্বে এটি স্থাপনের কথা ছিল।

এ ছাড়া ওরিয়নের গজারিয়া ৬৩৫ মেগাওয়াট কয়লাভিত্তিক প্রকল্পটি এলএনজিতে রূপান্তরের কথা রয়েছে।

নির্মাণাধীন কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নে অগ্রগতি

ছয় হাজার ৬৯১ মেগাওয়াট ক্ষমতার ছয়টি বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের কাজ চলছে। এর মধ্যে সিপিজিসিবিএলের কক্সবাজারের মাতারবাড়ী ১২০০ মেগাওয়াট কেন্দ্রটির নির্মাণকাজে অগ্রগতি ৪৬ শতাংশ। জাইকার আর্থিক সহযোগিতায় দেশটির সুমিতোমো করপোরেশন এটি বাস্তবায়ন করছে।

বাগেরহাটের রামপালে বাংলাদেশ-ইন্ডিয়া ফ্রেন্ডশিপ পাওয়ার কোম্পানির (বিআইএফপিসিএল) এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াট কেন্দ্রের বাস্তবায়ন অগ্রগতি ৭০ শতাংশ। এটি পিডিবি ও ভারতের এনটিপিসির যৌথ মালিকানায় নির্মিত হচ্ছে।

রুরাল পাওয়ার কোম্পানি (আরপিসিএল) ও চীনের নরিনকো ইন্টারন্যাশনালের যৌথ উদ্যোগে নির্মাণাধীন পটুয়াখালীর এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্রের বাস্তবায়ন অগ্রগতি ৩৬ শতাংশ। পায়রায় বাংলাদেশ-চায়না পাওয়ার কোম্পানির (বিসিপিসিএল) দ্বিতীয় পর্যায়ের এক হাজার ৩২০ মেগাওয়াট কেন্দ্রের অগ্রগতি ২০ শতাংশ। চীনের সিএমসির সঙ্গে যৌথ অংশীদারত্বে কেন্দ্রটি বাস্তবায়ন করছে বাংলাদেশের নর্থওয়েস্ট পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানি লিমিটেড (এনডব্লিউপিজিসিএল)।

চট্টগ্রামের বাঁশখালীতে এস আলমের (এসএস পাওয়ার) এক হাজার ২২৪ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ প্রকল্পের ৮২ শতাংশ কাজ শেষ হয়েছে। বরগুনায় নির্মাণাধীন আইসোটেকের বরিশাল ইলেকট্রিক পাওয়ার কোম্পানির ৩০৭ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্রের বাস্তবায়ন অগ্রগতি ৫৮ শতাংশ। এ ছাড়া চট্টগ্রামের মিরসরাইয়ে হাংঝু চায়নার ১২৪০ মেগাওয়াট প্রকল্পের এলওআই ইস্যু করা হয়েছে। বর্তমানে প্রকল্পটির স্পন্সর বদলের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন বলে জানা গেছে।

এলএনজিভিত্তিক প্রকল্প

কয়লা বাদ দিয়ে হালনাগাদ হচ্ছে বিদ্যুতের মহাপরিকল্পনা
বাগেরহাটের এলএনজি প্রকল্প।

এলএনজিভিত্তিক দুই হাজার ৭৬৫ মেগাওয়াট ক্ষমতার চারটি কেন্দ্রের নির্মাণকাজ চলছে। এর মধ্যে একটি দ্বৈত জ্বালানির। খুলনার রূপসায় এনডব্লিউপিজিসিএলের ৮৮০ মেগাওয়াট প্রকল্পের অগ্রগতি ৪০ শতাংশ।

নারায়ণগঞ্জের মেঘনাঘাটে সামিটের ৫৮৩ মেগাওয়াটের একটি দ্বৈত জ্বালানির (এলএনজি/ডিজেল) নির্মাণ অগ্রগতি ৩৩ শতাংশ। একই স্থানে ইউনিক গ্রুপের ৫৮৪ মেগাওয়াটের এলএনজিভিত্তিক প্রকল্পের কাজ এগিয়েছে ২২ শতাংশ।

মেঘনাঘাটেই ভারতের রিলায়েন্সের ৭১৮ মেগাওয়াট প্রকল্পের অগ্রগতি ৪৭ শতাংশ। চুক্তি প্রক্রিয়াধীন মেঘনাঘাটে আনলিমা পাওয়ারের ৪৫০ ও চট্টগ্রামের আনোয়ারায় ইউনাইটেড গ্রুপের ৫৯০ মেগাওয়াটের দুটি প্রকল্প।

এ ছাড়া ২০৩০ সালের মধ্যে পায়রায় এনডব্লিউপিজিসিএল ও জার্মানির সিমেন্সের যৌথ অংশীদারত্বের ২৪০০ মেগাওয়াট, মহেশখালীতে পিডিবি ও যুক্তরাষ্ট্রের জেনারেল ইলেকট্রিকের (জিই) যৌথ মালিকানায় ২৪০০ মেগাওয়াট, পিডিবির হরিপুরে ২৫০, সিদ্ধিরগঞ্জে ৬০০, ভেড়ামারায় ৬০০ ও ঘোড়াশালে ২২৫ মেগাওয়াট; গজারিয়ায় আরপিসিএলের ৬০০ মেগাওয়াট, ফেনীর সোনাগাজীতে ইলেকট্রিসিটি পাওয়ার জেনারেশন কোম্পানির (ইজিসিবি) ৬০০ মেগাওয়াট এবং মহেশখালীতে জাপান-বাংলাদেশ যৌথ উদ্যোগে ৬০০ মেগাওয়াটসহ আট হাজার ২৭৫ মেগাওয়াটের মোট ৯টি এলএনজিভিত্তিক প্রকল্প নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে। এসব প্রকল্পের অধিকাংশের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের কাজ শেষ হয়েছে। যৌথ প্রকল্পগুলোর যৌথ মূলধনি কোম্পানি গঠনের বিষয়টিও প্রক্রিয়াধীন।

নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে ঝুঁকছে দেশ

কয়লা বাদ দিয়ে হালনাগাদ হচ্ছে বিদ্যুতের মহাপরিকল্পনা
কক্সবাজারে বায়ু বিদ্যুৎকেন্দ্র প্রকল্প।

সিরাজগঞ্জে পিডিবির দুই মেগাওয়াটের একটি বায়ু বিদ্যুৎকেন্দ্র পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয়েছে। বরিশালে পিডিবির ১, ফেনীতে ইজিসিবির ৫০, মোংলার দুর্গাপুরে এনারগনের ১০০, লালমনিরহাটের পাটগ্রামে বাংলাদেশের জিএইচইএল ও চীনের সিইটিসির ৫, সিলেটের গোয়াইনঘাটে ইকি সুজি সান সোলার পাওয়ারের ৫, রংপুরের গঙ্গাচড়ায় ইন্ট্রাকো সোলারের ৩০, গাইবান্ধার লাটশালে তিস্তা সোলারের (বেক্সিমকো গ্রুপ) ২০০, পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় করতোয়া সোলারের ৩০ এবং সুনামগঞ্জের ধর্মপাশায় এডিসন-হাওরবাংলা-কোরিয়া গ্রিন এনার্জির ৩২ মেগাওয়াটসহ মোট ৪৫১ মেগাওয়াটের ৯টি সৌরবিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়ন পর্যায়ে রয়েছে। কক্সবাজারে ইউএস-ডিকে গ্রিন এনার্জির ৬০ মেগাওয়াটের একটি বায়ু বিদ্যুৎ প্রকল্পও বাস্তবায়ন প্রক্রিয়ায় রয়েছে।

চুক্তি স্বাক্ষর প্রক্রিয়ায় থাকা প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে- জামালপুরের মাদারগঞ্জে সিআইআরবিআর পাওয়ার জোনের ১০০, মৌলভীবাজারে ১০, সিঙ্গাপুর হোল্ডিংসের পঞ্চগড়ে ৫০, অ্যাপোলো ইঞ্জিনিয়ারিং ও এসএমই ইলেকট্রিক্যালের চাঁদপুরে সাত, নীলফামারীর ডিমলায় এসকেটিকের ৫০, পঞ্চগড়ের দেবীগঞ্জে রহিমআফরোজের ২০, ঢাকার ধামরাইয়ে আইবিভি-এসএস অ্যাগ্রোর ৫০, পাবনায় ভারতের সাপরজি পালনজির ১০০, চট্টগ্রামের বারইয়ারহাটে ৫০, পাবনার বেড়ায় মোস্তফা মোটরের ৩ দশমিক ৭৭ ও রাঙ্গুনিয়ায় ৫৫ মেগাওয়াট এবং জামালপুরে ৮১৩ কিলোওয়াটসহ মোট ৪৯৬ মেগাওয়াটের ১২টি সৌর বিদ্যুৎকেন্দ্র।

বর্জ্যভিত্তিক দুটি প্রকল্পও বাস্তবায়নের কথা রয়েছে। ছয় মেগাওয়াটের একটি বর্জ্যভিত্তিক কেন্দ্র হবে নারায়ণগঞ্জে। চীনের সিএমসির সঙ্গে ৪২ দশমিক ৫ মেগাওয়াটের বর্জ্যভিত্তিক আরেকটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন।

বায়ুভিত্তিক দুটি প্রকল্প চুক্তি স্বাক্ষরের পর্যায়ে রয়েছে। এগুলো হলো ফেনীর সোনাগাজীতে ৩০ ও মোংলায় ৫০ মেগাওয়াটের বায়ুবিদ্যুৎ প্রকল্প। সোনাগাজীর প্রকল্পটি যৌথভাবে করবে ভাগতী প্রোডাক্টস ও রেগান পাওয়ার টেক।

দরপত্র প্রক্রিয়াধীন রয়েছে ৩৩২ মেগাওয়াটের ছয়টি প্রকল্পে। এর মধ্যে এনডব্লিউপিজিসিএল এবং চীনের সিএমসি যৌথভাবে দুটি সৌর বিদ্যুৎকেন্দ্র করবে পাবনা (৬৪ মেগাওয়াট) ও সিরাজগঞ্জে (৬৮ মেগাওয়াট)। এ জন্য বাংলাদেশ-চায়না রিনিউয়েবল এনার্জি কোম্পানি (বিসিআরইসিএল) নামে যৌথ মূলধনি কোম্পানি গঠন করা হয়েছে।

বেসরকারি উদ্যোগে নেত্রকোণা ও চুয়াডাঙ্গায় ৫০ মেগাওয়াট করে দুটি এবং চাঁদপুর ও কক্সবাজারের ইনানীতে ৫০ মেগাওয়াট করে দুটি বায়ুবিদ্যুৎ প্রকল্প হওয়ার কথা রয়েছে।

পরিকল্পনায় ২০৩০ সাল পর্যন্ত সরকারি পর্যায়ে নবায়নযোগ্য জ্বালানির এক হাজার ৯৯ মেগাওয়াটের ১৭টি প্রকল্প নির্মাণের কথা রয়েছে। এর মধ্যে ২২১ মেগাওয়াটের চারটি বায়ুভিত্তিক প্রকল্প রয়েছে। এগুলো হলো- চট্টগ্রামের আনোয়ারার পার্কি বিচে পিডিবির ২ ও ইজিসিবির ১০০, পটুয়াখালীতে আরপিসিএলের ১০ এবং মাতারবাড়ীতে কোল পাওয়ার কোম্পানির ১০০ মেগাওয়াট প্রকল্প।

সৌর বিদ্যুৎ প্রকল্পগুলো হলো- পিডিবির সেন্ট মার্টিনে ৫০০ কিলোওয়াট, সোনাগাজীতে ৮৩, রংপুরের গঙ্গাচড়ায় ৬৯ ও বরিশালে ১০০ মেগাওয়াট করে দুটি প্রকল্প; আরপিসিএলের পঞ্চগড়ে ৩০, জামালপুরের মাদারগঞ্জে ১০০ ও গজারিয়ায় ৫০; ইজিসিবির সোনাগাজীতে প্রতিটি ১০০ মেগাওয়াটের দুটি, সিপিজিসিবিএলের মাতারবাড়ীতে ৫০, এসপিএসসিএলের পটুয়াখালীতে ২০০ ও সাতকানিয়ায় ১০০ মেগাওয়াট কেন্দ্র।

এই প্রকল্পগুলো সম্ভাব্যতা যাচাই, দরপত্র আহ্বান বা ভূমি অধিগ্রহণ পর্যায়ে রয়েছে। যৌথ অংশীদারত্বে বিসিআরইসিএলের ৫০ মেগাওয়াটের একটি বায়ু বিদ্যুৎকেন্দ্র হবে পায়রায়।

এ ছাড়া বেসরকারি খাতে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন ৪৫ ও গাজীপুর সিটি করপোরেশন ৩৫ মেগাওয়াটের দুটি বর্জ্যভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বাস্তবায়ন করছে। প্রকল্প দুটি স্পন্সর করছে ক্যানভাস এনভায়রনমেন্টাল ইনভেস্টমেন্ট কোম্পানি।

পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প

কয়লা বাদ দিয়ে হালনাগাদ হচ্ছে বিদ্যুতের মহাপরিকল্পনা
রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্প।

পাবনার রূপপুরে দুই হাজার ৪০০ মেগাওয়াটের একটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের কাজ চলছে। এটি ২০২৪ সালে উৎপাদনে আসার কথা রয়েছে। একই স্থানে সমান ক্ষমতার আরেকটি পারমাণবিক প্রকল্প বাস্তবায়নের পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। এ ছাড়া দক্ষিণাঞ্চলে একটি পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের জন্য জায়গা খোঁজা হচ্ছে।

বিদ্যুৎ খাতের বর্তমান পরিস্থিতি

দেশে স্থাপিত ১৪৬টি বিদ্যুৎকেন্দ্রের মধ্যে গ্যাসভিত্তিক ১১ হাজার ১০০, ফার্নেস অয়েলভিত্তিক পাঁচ হাজার ৩৪১, ডিজেল এক হাজার ২৮৬, কয়লা এক হাজার ৬৮৮, হাইড্রো ২৩০, আমদানি এক হাজার ১৬০, অন-গ্রিড সৌরবিদ্যুৎ ১২৯ মেগাওয়াট এবং ক্যাপটিভ দুই হাজার ৮০০ ও অফ-গ্রিড নবায়নযোগ্য জ্বালানি থেকে ৪০৪ মেগাওয়াটসহ বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতা ২৪ হাজার ১৩৮ মেগাওয়াট।

তবে চাহিদা না থাকায় এবং সঞ্চালনব্যবস্থার সীমাবদ্ধতার কারণে পুরো বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয় না। চাহিদার বিপরীতে ২০২১ সালের ২৭ এপ্রিল দেশে সর্বোচ্চ বিদ্যুৎ উৎপাদন করা হয় ১৩ হাজার ৭৯২ মেগাওয়াট।

আরও পড়ুন:
সাংবাদিক মাসউদের নামে মামলা প্রত্যাহার চায় এলআরএফ
নারী সহকর্মীর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের মামলায় সাংবাদিক কারাগারে
সমাজের অসংগতি তুলে ধরাই সাংবাদিকদের কাজ: হাইকোর্ট
হাইওয়ে থানায় ২ সাংবাদিকের ওপর হামলা
ব্যাংক হিসাব তলব: সাংবাদিকদের আশ্বাস তথ্যমন্ত্রীর

শেয়ার করুন

একজনের কবজায় শিক্ষার ২৫ প্রকল্প

একজনের কবজায় শিক্ষার ২৫ প্রকল্প

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের ৫০ প্রকল্পের অর্ধেকের দায়িত্বে একজন প্রকৌশলী। এতো প্রকল্পের দায়িত্বে একজন থাকাকে অস্বাভাবিক বলছেন সংশ্লিষ্টরা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এতে প্রকল্প বাস্তবায়নের গতি ধীর হয়ে যেতে পারে।

একজন কর্মকর্তার একটি প্রকল্পে দায়িত্ব পালনের কথা। এটাই সরকারি বিধান। এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সুস্পষ্ট নির্দেশনাও রয়েছে। কিন্তু এ নির্দেশকে অমান্যকে করে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের (ইইডি) একজন নির্বাহী প্রকৌশলীর হাতেই রয়েছে ২৫ প্রকল্প।

বিষয়টিকে নজিরবিহীন বলছেন শিক্ষা প্রকৌশল সংশ্লিষ্টরা। আলোচিত এই কর্মকর্তার নাম মো. আবুল হাসেম সরদার।

কাজ বণ্টনের নথিতে দেখা যায়, শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী আবুল হাসেম সরদার চলতি অর্থবছরের ২৫টি উন্নয়ন প্রকল্পের দায়িত্বে রয়েছেন। প্রকল্পে তার সহযোগী হিসেবে আছেন সহকারী প্রকৌশলী মো. সিরাজুল ইসলাম, উপসহকারী প্রকৌশলৗ মো. জাফর আলী সিকদার, মো. শাহজাজান আলী এবং শাহ মো. রাকিব।

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর সারা দেশের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভৌত অবকাঠামো উন্নয়ন, নতুন ভবন নির্মাণ, বিদ্যমান ভবনগুলোর সম্প্রসারণ ও রক্ষণাবেক্ষণ, মেরামত ও সংস্কার এবং আসবাবপত্র সরবরাহের কাজ করে থাকে। এ ছাড়া মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম, আইসিটি ল্যাব স্থাপন, ইন্টারনেট সংযোগ, আইসিটি সুবিধা সরবরাহের কাজও তারা করে থাকে।

এক প্রকৌশলীর অধীনে এতো বিপুল প্রকল্পের ব্যাপারে জানতে চাইলে বিষয়টি অস্বীকার করেন প্রকৌশলী আবুল হাসেম সরদার। তিনি বলেন, ‘আমি ২৫টি প্রকল্পের দায়িত্বে না।’

তার অধীনে কয়টি প্রকল্প আছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘১০-১১টি হতে পারে।’ একটু পরেই তিনি বলেন, “অফিস থেকে আমাকে ২৫টি প্রকল্পের ‘দেখভালের’ দায়িত্ব দিয়েছে। আমি প্রকল্প পরিচালক না।

“এ রকম একাধিক প্রকল্পের দায়িত্বে অনেকেই আছেন। আমি এর বেশি কিছু বলতে পারব না। যদি আপনার কিছু জানার থাকে তাহলে প্রধান প্রকৌশলীর কাছে যান।”

তিনি আরও বলেন, ‘২৫ প্রকল্পের মধ্যে অনেকগুলোই আছে ২ কোটি, ৫ কোটি, ১৪ কোটি টাকার। আমি অনেকগুলো প্রকল্প তৈরি করেছি। এ জন্য হয়তো আমার নামের পাশে এতগুলো প্রকল্প লেখা আছে।’

২৫ প্রকল্পের দায়িত্বে একজন কর্মকর্তা থাকতে পারেন কি না, এমন প্রশ্নে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রধান প্রকৌশলী (চলতি দায়িত্বে) মো. আরিফুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি কয়টি প্রকল্পের দায়িত্বে? অফিস প্রধান হিসেবে সব প্রকল্পের দায়িত্বেই তো আমি। আমার তো কাজ করাতে হবে। এ জন্য একজন কর্মকর্তা অনেকগুলো প্রকল্প দেখভাল করেন।’

অনেকের কাছেই একাধিক প্রকল্প থাকতে পারে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। বলেন, ‘অনেকের কাছেই একাধিক প্রকল্প থাকতে পারে। ধরেন আমার কাছে আছে ১০০টা কাজ। অফিসে যারা আছে, তাদের মধ্যেই তো কাজগুলো ভাগ করে দিতে হবে। আগে তো কাজগুলো ভাগ করে দেয়া হতো না। এখন আমরা কাজগুলো ভাগ করে দিচ্ছি। এতে কাজের সুবিধা হচ্ছে।’

সরকারি নিয়মে একাধিক প্রকল্পে এক কর্মকর্তাকে প্রকল্প পরিচালক (পিডি) হিসেবে নিয়োগের সুযোগ নেই। ২০০৯ সালে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের পরিপত্রের ১৬(৩৬) অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ৫০ কোটি টাকার বেশি প্রকল্পে একজন পূর্ণকালীন পিডি নিয়োগ করতে হবে। ১৬(৩৭) অনুচ্ছেদে বলা হয়, এক কর্মকর্তাকে একাধিক প্রকল্পের পিডির দায়িত্ব দেয়া যাবে না।

এছাড়া এক ব্যক্তিকে একাধিক প্রকল্পে দায়িত্ব না দিতে গত ২০ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক শামীম আহম্মেদের সই করা চিঠি সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগে পাঠানো হয়। সেখানে বলা হয়, একজন কর্মকর্তার ১০-১৪টি প্রকল্পের দায়িত্ব পালনকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ‘ভয়াবহ’ বলে মন্তব্য করেছেন। চিঠিতে যেসব কর্মকর্তা একাধিক প্রকল্পে পিডি আছেন, তাদের অতিরিক্ত প্রকল্পের দায়িত্ব ছেড়ে দিতে এ বছরের ২২ ফেব্রুয়ারির পর্যন্ত সময় দেয়া হয়।

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরে বর্তমানে চলমান প্রকল্পের সংখ্যা প্রায় ৫০টি। এর অর্ধেক সংখ্যকের দায়িত্বেই প্রকৌশলী আবুল হাসেম সরদার। অধিদপ্তরে নির্বাহী প্রকৌশলীর সংখ্যা সাত জন। খোঁজ নিয়ে অন্য কারো দায়িত্বে এতো বিপুল সংখ্যক প্রকল্প পাওয়া যায়নি।

অনুসন্ধানে জানা যায়, কার্য বণ্টনের তালিকায় নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আবুল হাসেম সরদারের নামের পাশে ‘অর্পিত দায়িত্ব’/কাজসমূহ হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে ২৫টি প্রকল্পে।

প্রকল্পগুলো হলো ১. সুনামগঞ্জ জেলায় তিনটি বেসরকারি কলেজ উন্নয়ন; ২. বীরশ্রেষ্ঠ মুন্সী আব্দুর রউফ পাবলিক কলেজ বিজিবি হেড কোয়ার্টার, ঢাকা-এর অবকাঠামো উন্নয়ন; ৩. গোপালগঞ্জ, মাদারীপুর ও রাজবাড়ী জেলার তিনটি বেসরকারি কলেজের অবকাঠামো উন্নয়ন; ৪. মিলিটারি কলেজিয়েট স্কুল, খুলনা-এর অবকাঠামো উন্নয়ন; ৫. নোয়াখালী ও ফেনী জেলার দুটি সরকারি ও একটি বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো উন্নয়ন; ৬. শেখ রাসেল উচ্চ বিদ্যালয়, সদর গোপালগঞ্জ ও শেরেবাংলা বালিকা মহাবিদ্যালয়, সূত্রাপুর, ঢাকা-এর অবকাঠামো উন্নয়ন; ৭. রাজস্ব খাতের অধীনে সরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংস্কার (৪৯৩১); ৮. রাজস্ব খাতের অধীনে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংস্কার (৭০২৬); ৯. রাজস্ব খাতের অধীনে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের আসবাবপত্র সরবরাহ; ১০. সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার পাঁচটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের অবকাঠামো উন্নয়ন; ১১. তিন পার্বত্য জেলায় বিদ্যমান মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে আবাসিক ভবন নির্মাণ ও নতুন আবাসিক বিদ্যালয় স্থাপন; ১২. কলেজবিহীন পাঁচ উপজেলায় সরকারি কলেজ স্থাপন; ১৩. ১০০টি উপজেলায় একটি করে টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ (টিএসসি) স্থাপন; ১৪. উপজেলা পর্যায়ে ৩২৯টি টেকনিক্যাল স্কুল ও কলেজ স্থাপন (২য় পর্যায়); ১৫. কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তরাধীন ৬৪টি টেকনিক্যাল স্কুল অ্যান্ড কলেজের সক্ষমতা বৃদ্ধি; ১৬. সিলেট, বরিশাল, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগে চারটি মহিলা পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট স্থাপন; ১৭. বাংলাদেশ ভূমি জরিপ শিক্ষার উন্নয়ন; ১৮. কুমিল্লা জেলার সদর দক্ষিণ উপজেলার লালমাই ডিগ্রি কলেজের অবকাঠামো উন্নয়ন; ১৯. নয়টি সরকারি কলেজ স্থাপন; ২০. অধিকসংখ্যক শিক্ষার্থী ভর্তির সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে বিদ্যমান পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটসমূহের অবকাঠামো উন্নয়ন; ২১. উপকূলীয় এলাকায় ভোলা জেলার তজুমউদ্দিন উপজেলায় নির্বাচিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জলবায়ু প্রভাব সহিষ্ণু অবকাঠামো নির্মাণ; ২২. ময়মনসিংহ জেলার হালুয়াঘাট উপজেলাধীন কুতকুড়া টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিজনেজ ম্যানেজমেন্ট কলেজ জলবায়ু প্রভাব সহিষ্ণু অবকাঠামো নির্মাণ; ২৩. উপকূলীয় এলাকায় পিরোজপুর জেলার ভান্ডারিয়া ও ইন্দুকানি উপজেলায় নির্বাচিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জলবায়ু প্রভাব সহিষ্ণু অবকাঠামো নির্মাণ; ২৪. সরকারি মাধ্যমিক বিদ্যালয়সমূহের উন্নয়ন (৩২৩ সরকারি স্কুল); এবং ২৫. পাইকগাছা কৃষি কলেজ স্থাপন।

শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তরের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা নিউজবাংলাকে বলেন, একজনের হাতে এত প্রকল্প থাকা অস্বাভাবিক। বিষয়টি জানাজানি হওয়ায় ইতোমধ্যে দুই থেকে তিনটি প্রকল্প সেখান থেকে কমানো হয়েছে।

আবুল হাসেম সরদার মোট কত কোটি টাকার কাজের দায়িত্বে রয়েছেন, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘অ্যাকচুয়াল হিসাব বলা সম্ভব না। তবে এটুকু বলতে পারি, ২৫ প্রকল্পের মধ্যে বেশ কয়েকটি বড় প্রকল্প রয়েছে, যেগুলোর একেকটি কয়েক হাজার কোটি টাকারও বেশি।

একজন কর্মকর্তার ২৫ প্রকল্পের দায়িত্বে থাকাকে অস্বাভাবিক বলছেন ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামানও।

তিনি বলেন, ‘বিষয়টি অবশ্যই অস্বাভাবিক। এটা কেমন করে সম্ভব হলো তা খতিয়ে দেখা দরকার। এতে কাজের দীর্ঘসূত্রতা বাড়বে। এ ছাড়া এর ফলে কাউকে বিশেষ সুবিধা দেয়া হচ্ছে কি না, সেটাও দেখা দরকার।’

এ বিষয়ে জানতে শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলকে ফোন করা হলে তিনি ফোন কেটে প্রশ্ন এসএমএস করতে মেসেজ পাঠান। পরে ৬ ঘন্টা ১৪ মিনিট পর এসএমএসে লেখেন, ‘উনার ব্যাপারে আপনারা খবর নেন। চিফ ইঞ্জিনিয়ার সাহেব ব্যাখা দিবে।’

আরও পড়ুন:
সাংবাদিক মাসউদের নামে মামলা প্রত্যাহার চায় এলআরএফ
নারী সহকর্মীর বিরুদ্ধে অপপ্রচারের মামলায় সাংবাদিক কারাগারে
সমাজের অসংগতি তুলে ধরাই সাংবাদিকদের কাজ: হাইকোর্ট
হাইওয়ে থানায় ২ সাংবাদিকের ওপর হামলা
ব্যাংক হিসাব তলব: সাংবাদিকদের আশ্বাস তথ্যমন্ত্রীর

শেয়ার করুন