কম বয়সীদের স্ট্রোক বাড়ছে

কম বয়সীদের স্ট্রোক বাড়ছে

প্রতীকী ছবি

এত দিন সবার ধারণা ছিল স্ট্রোক শুধু বয়স্ক ব্যক্তিদের হয়। তবে সেই ধারণা এখন পরিবর্তন হয়েছে। করোনার মধ্যে তরুণদের স্ট্রোকের সংখ্যা বেড়েছে। একই সঙ্গে এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুও বেড়েছে।

কুমিল্লার বাসিন্দা বালু উত্তোলন শ্রমিক সুমন। দীর্ঘদিন কঠোর পরিশ্রমের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করেন। শুক্রবার কর্মরত অবস্থায় হঠাৎ মস্তিষ্কের বাম পাশে রক্ত জমাট বাঁধে ৩১ বছর বয়সী সুমনের। একপাশের রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে যাওয়ায় আরেক পাশ দুর্বল হয়ে পড়ে।

প্রথমে কুমিল্লা হাসপাতালে নেয়া হয় সুমনকে। শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এ হাসপাতালের নিউরো সায়েন্স বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. সুমন রানা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এত দিন সবার ধারণা ছিল স্ট্রোক (মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ) শুধু বয়স্ক ব্যক্তিদের হয়। তবে সেই ধারণা এখন পরিবর্তন হয়েছে। করোনার মধ্যে তরুণদের স্ট্রোকের সংখ্যা বেড়েছে। একই সঙ্গে এই রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুও বেড়েছে। মাসে কিংবা বছরে কত সংখ্যক তরুণ রোগী এই হাসপাতালে সেবা নিতে আসেন, সেই পরিসংখ্যান নেই তাদের কাছে। তবে আগের তুলনায় কম বয়সীদের সেবা নেয়ার হার অনেক বেড়েছে বলে জানান এই চিকিৎসক।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) তথ্যেও এই প্রমাণ মিলেছে। দেশে অসংক্রামক রোগের মধ্যে স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। এক বছরে স্ট্রোকে মৃত্যু বেড়েছে ৪০ হাজার। দেশে স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে ২০১৯ সালে মারা গিয়েছিলেন ৪৫ হাজার ৫০২ জন। ২০২০ সালে এই সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৮৫ হাজার ৩৬০ জনে। সচেতনতার ঘাটতি, ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, ধূমপান ও তামাকজাত পণ্য সেবনের প্রবণতা, অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপনসহ নানা কারণে স্ট্রোকের মৃত্যুও বাড়ছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

তারা বলছেন, খাদ্যাভ্যাস, জীবনযাত্রা, ফাস্ট ফুড ও মাদক গ্রহণের ফলে যুবকদের বড় একটি অংশ ডায়াবেটিসে ভুগছেন। অনেক কম বয়সে চাপ নিচ্ছেন। এতে করে মানসিক প্রভাব পড়ছে। যেসব তরুণ সেবা নিতে আসেন, তাদের অধিকাংশই আসেন মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে।

গত সেপ্টেম্বরে আমেরিকান নিউরোলজি একাডেমির প্রকাশিত গবেষণায় বলা হয়, করোনায় আক্রান্ত তরুণদের মাঝে স্ট্রোকের হার আশঙ্কাজনক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। করোনার ফলে স্ট্রোকে আক্রান্ত তরুণদের ৫০ ভাগ রোগীর স্ট্রোকের লক্ষণ প্রকাশিত হওয়ার সময় জ্বর-কাশি শ্বাসকষ্ট ইত্যাদি উপসর্গ ছিল না। এ ছাড়া তরুণদের ক্ষেত্রে স্ট্রোক করোনার প্রথম লক্ষণ হিসেবে বিবেচনায় আসছে।

৯০ ভাগ স্ট্রোক প্রতিরোধ করা সম্ভব

স্ট্রোক বিশেষজ্ঞদের আশঙ্কা, করোনায় আক্রান্ত উপসর্গহীন তরুণদের অর্ধেকই ব্রেইন স্ট্রোকে ভুগতে পারেন। ৩০ বছর বয়স্ক মৃদু করোনায় উপসর্গসহ রোগীরা স্ট্রোক নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য মতে, স্ট্রোক মৃত্যুর দ্বিতীয় ও অক্ষমতার তৃতীয় কারণ।

নিম্ন ও মধ্যম আয়ের ৭০ ভাগ দেশেই স্ট্রোকের ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি। এসব দেশে ৮৭ ভাগ ক্ষেত্রে মৃত্যু ও অক্ষমতার প্রধান কারণ এই রোগ। বিশ্বে প্রতিবছর দেড় কোটি মানুষ স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়, যাদের ৩০ ভাগই মারা যায়। আর প্রায় ৬০ ভাগ পক্ষাঘাতগ্রস্ত হয়।

৯০ শতাংশ স্ট্রোক প্রতিরোধ করা সম্ভব স্বাস্থ্যসম্মত খাদ্যাভ্যাস ও নিয়মমাফিক জীবন যাপন করলে। আশার কথা হলো, দ্রুত চিহ্নিত করতে পারলে ৭০ শতাংশের বেশি রোগী এর মারাত্মক ছোবল থেকে রেহাই পেতে পারে। এখন পর্যন্ত বিশ্বের প্রায় ৮ কোটি মানুষ স্ট্রোক থেকে সুস্থ হয়েছে।

বাংলাদেশেও বাড়ছে স্ট্রোকের রোগীর সংখ্যা। ঢাকা মেডিক্যালের নিউরো সায়েন্স বিভাগের করা গবেষণা বলছে, দেশে ৪০ বছরে রোগটির তীব্রতা বেড়েছে শতভাগ। বর্তমানে প্রতি চারজনে একজন স্ট্রোকের ঝুঁকিতে রয়েছেন। উল্টোদিকে উন্নত বিশ্বের দেশগুলোতে স্ট্রোকের মাত্রা কমেছে ৪২ শতাংশ। ২০৫০ সালে বিশ্বে স্ট্রোকের মোট রোগীর ৮০ শতাংশই নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলোর হবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের নিউরো সায়েন্স বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. শফিকুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘উচ্চ রক্তচাপের রোগীদের মধ্যে ৪৮ শতাংশই স্ট্রোকের ঝুঁকিতে রয়েছেন। অনিয়ন্ত্রিত জীবন যাপনের কারণে প্রতি ১০০ জনে ৩৬ জন স্ট্রোকের শিকার হচ্ছেন। এ ছাড়া রোগটিতে আক্রান্ত ১৯ শতাংশের দেহে অতিরিক্ত মেদ, ১৭ শতাংশ মানসিক চাপে ভোগেন। এ ছাড়া ২৩ শতাংশ জাঙ্ক ফুডে আসক্ত।’

তিনি বলেন, স্ট্রোকে আক্রান্তের প্রধান কারণ উচ্চ রক্তচাপ। এই কারণে মস্তিষ্কে রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। বিশেষ করে অনিয়ন্ত্রিত রক্তচাপ থাকলে স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ে। এ জন্য প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধে এগিয়ে আসতে হবে।

স্ট্রোকের লক্ষণ

ডা. শফিকুল ইসলাম বলেন, স্ট্রোক দুই ধরনের। রক্তনালি বন্ধ হয়ে যাওয়া এবং রক্তনালি ফেটে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ। স্ট্রোকের লক্ষণগুলো হলো শরীরের ভারসাম্য রাখতে সমস্যা হওয়া, কথা জড়িয়ে যাওয়া, হঠাৎ করে চোখে কম দেখা, মাথা ঘোরানো, অচেতন হয়ে পড়া, শরীরের এক দিক অবশ হয়ে যাওয়া ইত্যাদি।

স্ট্রোকে আক্রান্ত ৫০ শতাংশ রোগীর পক্ষাঘাত ঘটে

নিউরো সায়েন্স বিভাগের এই সহযোগী অধ্যাপক বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্য উল্লেখ করে বলেন, বিশ্বে বছরে দেড় কোটি মানুষ স্ট্রোকজনিত সমস্যায় ভোগে। এর মধ্যে স্ট্রোকে মৃত্যু হয় প্রায় ৫০ লাখের। বাকিদের স্ট্রোকের কারণে পক্ষাঘাতজনিত সমস্যা বরণ করে নিতে হয়। এই রোগীরা পরিবারের বোঝা হয়ে যান। চল্লিশোর্ধ্ব ব্যক্তিদের মধ্যে স্ট্রোকের ঝুঁকি বেশি। তবে শিশুদেরও স্ট্রোক হতে পারে।

আরও পড়ুন:
বছরে ১৮ লাখের বেশি স্ট্রোকের রোগী
চট্টগ্রাম মেডিক্যালে বিশেষায়িত স্ট্রোক ইউনিট
বরিশালে হিটস্ট্রোকে রিকশাচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ডেল্টার চেয়ে বিপজ্জনক ওমিক্রন?

ডেল্টার চেয়ে বিপজ্জনক ওমিক্রন?

ডব্লিউএইচওর তথ্য অনুযায়ী, আগে যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তারা ওমিক্রনেও আক্রান্ত হতে পারেন বলে প্রাথমিক গবেষণায় ধারণা করা হচ্ছে। অর্থাৎ কোভিডে আক্রান্ত ব্যক্তিরা নতুন ধরন ওমিক্রনের সহজ শিকার হতে পারেন।

করোনাভাইরাসের রূপ পরিবর্তিত নতুন ধরন বি.ওয়ান.ওয়ান.ফাইভটুনাইনকে চলতি সপ্তাহে ওমিক্রন নাম দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। বিজ্ঞানীরা বলছেন, ২০১৯ সালে চীনের উহানে শনাক্ত কোভিড নাইনটিনের চেয়ে ওমিক্রন একেবারেই আলাদা।

কোভিডের ভিন্ন বৈশিষ্ট্যের ধরনগুলোর মধ্যে এর আগে সবচেয়ে উদ্বেগজনক হিসেবে আখ্যায়িত করা হচ্ছিল ডেল্টাকে। ওমিক্রনের অস্তিত্ব শনাক্তের পর থেকে সবচেয়ে বেশি যে প্রশ্নটি শোনা যাচ্ছে, তা হলো ওমিক্রন ডেল্টার চেয়েও বিপজ্জনক কি না।

বিশ্বজুড়ে উদ্বেগ বাড়তে থাকার মধ্যেই ডব্লিউএইচও রোববার ওমিক্রনের বিষয়ে সবশেষ সংগৃহীত কিছু তথ্য প্রকাশ করেছে।

ওমিক্রনের মধ্যে অনেক পরিবর্তন শনাক্ত হয়েছে, যা ভাইরাসটির আচরণেও প্রভাব ফেলতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে। ভাইরাসটি প্রথম শনাক্ত করা সাউথ আফ্রিকার স্বাস্থ্যবিদদের মতে, এখন পর্যন্ত অর্ধশত পরিবর্তন শনাক্ত হয়েছে নতুন ধরনে। এর বহিঃ আবরণীতে থাকা আমিষের যে অংশটি ভাইরাসকে কোষের সঙ্গে যুক্ত থাকতে সাহায্য করে, সেই ‘স্পাইক প্রোটিন’-এর সংখ্যা ৩০টি।

করোনা প্রতিরোধী টিকা মূলত ভাইরাসের এই ‘স্পাইক প্রোটিন’কেই আক্রমণ করে। কারণ ‘স্পাইক প্রোটিন’ ব্যবহার করেই ভাইরাসটি দেহের কোষে প্রবেশের পথ উন্মুক্ত করে।

ভাইরাস তার যে অংশ ব্যবহার করে প্রথমবার মানবদেহের কোষের সংস্পর্শে আসে, করোনার নতুন ধরনেই সেই অংশে ১০টি পরিবর্তন শনাক্ত করেছেন বিজ্ঞানীরা। বিশ্বজুড়ে আতঙ্ক ছড়ানো আগের ধরনটি, অর্থাৎ করোনার ডেল্টা ভাইরাসে এ পরিবর্তনের সংখ্যা ছিল মাত্র দুই।

ফলে এসব পরিবর্তন ওমিক্রনকে আরও সহজে ও দ্রুত সংক্রমণযোগ্য করে তুলেছে কি না, কিংবা আরও গুরুতর অসুস্থতার কারণ হতে পারে কি না ইত্যাদি প্রশ্নের উত্তর খুঁজছেন বিজ্ঞানীরা।

ডব্লিউএইচওর তথ্য অনুযায়ী, আগে যারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন তারা ওমিক্রনেও আক্রান্ত হতে পারেন বলে প্রাথমিক গবেষণায় ধারণা করা হচ্ছে। অর্থাৎ কোভিডে আক্রান্ত ব্যক্তিরা নতুন ধরন ওমিক্রনের সহজ শিকার হতে পারেন।

ডেল্টাসহ করোনার অন্য ধরনগুলোর তুলনায় ওমিক্রন ব্যক্তি থেকে ব্যক্তিতে অধিক সংক্রামক কি না, তা এখনও স্পষ্ট নয়। আপাতত কেবল আরটি-পিসিআর পদ্ধতিতে পরীক্ষার মাধ্যমেই নতুন ধরনটি শনাক্ত করা সম্ভব।

টিকার ওপর এই ভ্যারিয়েন্টটির প্রভাব খতিয়ে দেখতেও কাজ শুরু করেছে ডব্লিউএইচও।

ওমিক্রনে আক্রান্ত ব্যক্তিদের গুরুতর অসুস্থ হওয়ার ঝুঁকি কতটা, সে বিষয়টিও স্পষ্ট হয়নি। উপসর্গের দিক থেকে করোনার অন্য ধরনগুলোর চেয়ে ওমিক্রন আলাদা কি না, সে বিষয়েও কোনো তথ্য মেলেনি।

প্রাথমিক তথ্য অবশ্য বলছে যে সম্প্রতি সাউথ আফ্রিকায় করোনা নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা বেড়েছে। তবে শুধু ওমিক্রনে আক্রান্ত হওয়ার চেয়ে বরং এ ক্ষেত্রে সামগ্রিকভাবে করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণেও হতে পারে এটি।

আরও পড়ুন:
বছরে ১৮ লাখের বেশি স্ট্রোকের রোগী
চট্টগ্রাম মেডিক্যালে বিশেষায়িত স্ট্রোক ইউনিট
বরিশালে হিটস্ট্রোকে রিকশাচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

রামেক হাসপাতালে জরুরি বিভাগ আছে, সেবা নেই

রামেক হাসপাতালে জরুরি বিভাগ আছে, সেবা নেই

রামেক হাসপাতালে জরুরি বিভাগ থাকলেও মিলছে না সেবা। ছবি: সংগৃহীত

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, বর্তমানে জরুরি বিভাগ থেকে রোগীদের তাড়াতাড়িই পাঠানো হচ্ছে। তবে রোগীদের ওয়ার্ডে যেতে যেতে ১০ থেকে ১৫ মিনিট লেগে যায়। এই সময়টা এখানে খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ ১০ মিনিটের মধ্যে রোগী ম্যানেজ করতে পারলে এক ধরেনের রেজাল্ট আসে আবার ১০ মিনিট পর ম্যানেজ করলে আরেক ধরনের রেজাল্ট পাওয়া যায়। এখানকার প্রতিটি মিনিটই গোল্ডেন মিনিট।

গুরুতর রোগীদের চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে জরুরি বিভাগ থাকলেও সেখানে কাঙ্ক্ষিত সেবা মিলছে না বলে অভিযোগ উঠেছে।

রোগীদের জরুরি চিকিৎসা না দিয়েই পাঠানো হয় বিভিন্ন ওয়ার্ডে। এতে তাৎক্ষণিক সেবা না পেয়ে রোগীর জটিলতা বাড়ে এমনকি অনেকের মৃত্যুও হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে রোগীর নাম-ঠিকানা রেজিস্ট্রার আর কোন ওয়ার্ডে যাবে সেটি ঠিক করে দেয়া ছাড়া কোনো কাজ নেই। জরুরি বিভাগে সার্বক্ষণিক একজন চিকিৎসক থাকলেও সেখানে রোগীদের চিকিৎসা দেয়ার কোনো ব্যবস্থা নেই।

রাজশাহী নগরীর ছোট বনগ্রাম এলাকার জাহিদুজ্জামান চলতি মাসের শুরুর দিকে তার স্ট্রোক করা মাকে নিয়ে রামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে যান। সেখানে টিকিট কেটে খাতায় নাম এন্ট্রি করে প্রায় ২০ মিনিট পর মাকে নিয়ে পৌঁছান ৩৬ নম্বর ওয়ার্ডে।

এরপর রিপোর্ট নিয়ে যান ওয়ার্ড চিকিৎসকের কাছে। সেখানেও লম্বা লাইন। মিনিট বিশেক পর সিরিয়াল পান ডাক্তারের। এরপর বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা, বাইরে থেকে ওষুধপত্র আনাসহ নানা প্রক্রিয়া শেষে প্রায় ঘণ্টা দুয়েক পর তার মায়ের চিকিৎসা শুরু হয়। অথচ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে সেবা মিললে চিকিৎসা আরও আগে শুরু করা যেত।

শুধু জাহিদুজ্জামানের মা নন, এভাবে প্রত্যেক রোগীকেই হাসপাতালে যাওয়ার পর এক থেকে দেড় ঘণ্টা ধরে অপেক্ষা করতে হয় চিকিৎসা শুরু হতে।

দুর্গাপুর উপজেলার সায়বাড় গ্রামের বাসিন্দা জনাব আলীর স্বজনরা জানান, জনাব আলী ডায়াবেটিস রোগী। রক্তচাপ কমে যাওয়ায় ২২ জুন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তাকে রামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নেয়া হয়।

জরুরি বিভাগে নাম, ঠিকানা এন্ট্রি শেষে তাকে ১৬ নম্বর ওয়ার্ডে নিতে বলা হয়। রোগীকে ট্রলিতে তুলে ওয়ার্ডের দিকে যাচ্ছিলেন স্বজনরা। মাঝপথে রোগীর তীব্র শ্বাসকষ্ট শুরু হয়। তাই আবারও জরুরি বিভাগের দিকে ট্রলি ঘুরিয়ে নেয়া হয়। তবে জরুরি বিভাগে পৌঁছানোর সময়ই তিনি মারা যান।

এমনকি জরুরি বিভাগে ইসিজি করার ব্যবস্থা না থাকায় তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে মৃত ঘোষণা করতে পারেনি নার্স। ইসিজি করতে পাঠানো হয় ৩২ নম্বর ওয়ার্ডে। পরে জনাব আলীকে আনুষ্ঠানিকভাবে মৃত ঘোষণা করা হয় বেলা ১১টা ৫ মিনিটে।

একইভাবে ১৫ জুন নাটোরের সিংড়ার বাসিন্দা বেলালুজ্জামানকে নেয়া হয় রামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে। সেখানে যাবতীয় প্রক্রিয়া শেষে ওয়ার্ডে নিয়ে যাওয়া হয় ৩৬ মিনিটে। এরপর চিকিৎসা শুরু হতে না হতেই তিনি মারা যান।

এভাবে অনেক রোগীই হাসপাতালের জরুরি বিভাগ থেকে ওয়ার্ডে নিয়ে যাওয়ার পথেই মারা যাচ্ছেন। জরুরি সেবা না থাকায় এ ধরনের ঘটনা ঘটছে বলে মনে করেন ভুক্তভোগীরা।

তবে জরুরি সেবার বিষয়ে রামেক হাসপাতালের ইমার্জেন্সি মেডিক্যাল অফিসার ডা. শামসুর রহমান জানান, জরুরি বিভাগে রোগী এলে তার অবস্থা বুঝেই তাকে ওয়ার্ডে পাঠানো হয়। এখানে সার্বক্ষণিক একজন চিকিৎসক থাকেন। তারা রোগী দেখে প্রয়োজনে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে রোগীদের ওয়ার্ডে পাঠান।

এদিকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ বলছে, রোগীদের জরুরি সেবা দিতে না পারার বিষয়টি নিয়ে তারা ভাবছেন। জরুরি বিভাগকে আধুনিকায়ন করার পরিকল্পনাও নেয়া হয়েছে। এটির বাস্তবায়ন হলে এ বিভাগেই মিলবে সব ধরনের চিকিৎসা।

রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, বর্তমানে জরুরি বিভাগ থেকে রোগীদের তাড়াতাড়িই পাঠানো হচ্ছে। তবে রোগীদের ওয়ার্ডে যেতে যেতে ১০ থেকে ১৫ মিনিটের মতো সময় লেগে যায়। এই সময়টা এখানে খুবই গুরুত্বপূর্ণ।

তিনি বলেন, ‘১০ মিনিটের মধ্যে রোগী ম্যানেজ করতে পারলে এক ধরনের রেজাল্ট আসে, আবার ১০ মিনিট পর ম্যানেজ করলে আরেক ধরনের রেজাল্ট পাওয়া যায়। এখানকার প্রতিটি মিনিটই গোল্ডেন মিনিট।

‘এখন জরুরি বিভাগ ৮ থেকে ৯ জন ডাক্তার দিয়ে চলে। তারা সময় ভাগ করে দায়িত্ব পালন করেন। জরুরি বিভাগকে যুগোপযোগী করতে আমরা বিভিন্ন পরিকল্পনা করেছি। এটি আধুনিকায়নের জন্য বাজেটও চেয়েছি। পেলে এ বিভাগ আরও সমৃদ্ধ হবে।’

পরিচালক বলেন, ‘আমাদের জরুরি বিভাগের ভবনে বর্তমানে ওয়ানস্টপ সেবা, পুলিশ বক্স, ডিএনএসহ নানা বিভাগ ঢুকে পড়েছে। এগুলো এখান থেকে সরিয়ে ভবনটি জরুরি সেবার জন্য ছেড়ে দিতে হবে। তবে ওই বিভাগগুলোও গুরুত্বপূর্ণ। তাই ওই বিভাগগুলোর জন্য আমরা জায়গা দিয়েছি। এখন অবকাঠামো নির্মাণের জন্য বাজেট এলেই কাজ শুরু করা হবে।’

জরুরি বিভাগে কী কী থাকছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, কার্ডিওলজি বিভাগ থেকে শুরু করে সব কিছুই থাকবে সেখানে। ছোটোখাটো অপারেশনও করা হবে। এখন যেমন হার্টের রোগী এলে তাকে ওয়ার্ডে পাঠাতে হয়। তখন আর সময় নষ্ট হবে না। এখানেই চিকিৎসা শুরু করব। অর্থপেডিকের চিকিৎসাও শুরু করার পরিকল্পনা আছে। অনেক রোগীকে এখান থেকেই চিকিৎসা দিয়ে ছেড়ে দেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
বছরে ১৮ লাখের বেশি স্ট্রোকের রোগী
চট্টগ্রাম মেডিক্যালে বিশেষায়িত স্ট্রোক ইউনিট
বরিশালে হিটস্ট্রোকে রিকশাচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

ওমিক্রন ঠেকাতে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা ‘অবৈজ্ঞানিক’

ওমিক্রন ঠেকাতে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা ‘অবৈজ্ঞানিক’

করোনার ওমিক্রন ধরন ঠেকাতে আফ্রিকায় ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে বেশ কিছু দেশ। ফাইল ছবি

সাউথ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট রামাফোসা বলেন, ‘ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়ে ভাইরাসটি ঠেকানোর কোনো বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা নেই। এটা বৈজ্ঞানিকভাবে ভিত্তিহীন। এর মাধ্যমে আফ্রিকার সঙ্গে অনায্য বৈষম্য করা হচ্ছে। ভাইরাসটির এই ধরন ছড়ানো ঠেকাতে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা কোনো কাজে আসবে না।’

করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন ঠেকাতে আফ্রিকার উত্তরাঞ্চলের দেশগুলোতে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দ্রুত তুলে নেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন সাউথ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা।

করোনা ঠেকাতে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞাকে বৈজ্ঞানিকভাবে ভিত্তিহীন দাবি করে তিনি বলেন, এটা আফ্রিকা অঞ্চলের সঙ্গে বৈষম্যমূলক আচরণ।

বিবিসির খবরে বলা হয়, সিরিল রামাফোসা আফ্রিকার ওপর দেয়া ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞায় ‘গভীরভাবে মর্মাহত’ বলে উল্লেখ করেন। এতে দেশগুলোর সঙ্গে অবিচার করা হচ্ছে দাবি করে তিনি দ্রুত নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার আহ্বান জানান।

যুক্তরাজ্য, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং যুক্তরাষ্ট্রসহ আরও কিছু দেশ আফ্রিকায় ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে।

করোনার নতুন ধরন ঠেকাতে বাংলাদেশের স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেকও আফ্রিকার দেশগুলোর সঙ্গে ভ্রমণ আপাতত বন্ধ রাখার কথা জানিয়েছেন।

ওমিক্রন ধরনটিকে ‘উদ্বেগজনক’ বলছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। এটি খুব দ্রুত সংক্রমিত ধরন।

চলতি মাসের শুরুর দিকে দ্রুত ছড়িয়ে পড়া করোনার নতুন ধরনটি প্রথম শনাক্ত হয় আফ্রিকার দেশ বতসোয়ানায়। এরপর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা গত বুধবার ধরনটি সম্পর্কে জানায়।

বতসোয়ানার পর সাউথ আফ্রিকার গৌটেং প্রদেশে সবচেয়ে বেশি সংক্রমণটি শনাক্ত হয়। এরপর দেশটির প্রায় সব প্রদেশেই এটি ধরা পড়েছে।

সাউথ আফ্রিকার পাশাপাশি অনেক দেশেই এরই মধ্যে ওমিক্রন শনাক্ত করা হয়েছে।

ওমিক্রন শনাক্তের পর খুব দ্রুত পদক্ষেপ হিসেবে কয়েকটি দেশের আফ্রিকার ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেয়ার ঘটনার পর বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, এখনটি এমন ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দেয়া উচিত নয়। এজন্য ঝুঁকি বিবেচনায় নিয়ে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতির ওপর নজর দেয়া উচিত।

রোববার সাউথ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট রামাফোসা এক বক্তৃতায় বলেন, ‘ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়ে ভাইরাসটি ঠেকানোর কোনো বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা নেই। এটা বৈজ্ঞানিকভাবে ভিত্তিহীন। এর মাধ্যমে আফ্রিকার সঙ্গে অনায্য বৈষম্য করা হচ্ছে। ভাইরাসটির এই ধরন ছড়ানো ঠেকাতে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা কোনো কাজে আসবে না।’

তিনি বলেন, ‘ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা বা কড়াকড়ি করার ফলে আবারও অর্থনৈতিক ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে। করোনাভাইরাস মহামারি থেকে বিভিন্ন দেশ যে উত্তরণ করছিল, এমন কর্মকাণ্ডে সেটি মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।’

যেসব দেশ এরইমধ্যে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে তাদের তা প্রত্যাহার করে নেয়ার আহ্বান জানান সিরিল রামাফোসা।

তিনি বলেন, ‘আবারও অর্থনৈতিক ক্ষতির সম্মুখীন হওয়ার আগেই তাদের এ সিদ্ধান্ত দ্রুত নিতে হবে।’

ওমিক্রন ছড়ানোর কারণ হিসেবে রামাফোসা বিশ্বে করোনার টিকা বৈষম্যকে দায়ী করেন। আফ্রিকা সবচেয়ে বেশি টিকা বৈষম্যের শিকার হয়েছে বলেও দাবি তার।

আফ্রিকার বাইরে এরইমধ্যে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে যুক্তরাজ্য, জার্মানি, অস্ট্রেলিয়া, ইসরায়েলের মতো দেশে।

আরও পড়ুন:
বছরে ১৮ লাখের বেশি স্ট্রোকের রোগী
চট্টগ্রাম মেডিক্যালে বিশেষায়িত স্ট্রোক ইউনিট
বরিশালে হিটস্ট্রোকে রিকশাচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

অলিগলিতে অনুমোদনহীন ক্লিনিক ডায়াগনস্টিক সেন্টার

অলিগলিতে অনুমোদনহীন ক্লিনিক ডায়াগনস্টিক সেন্টার

ফরিদপুরে অনুমোদন ছাড়াই গড়ে উঠেছে একাধিক ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিক। ছবি: নিউজবাংলা

সরেজমিনে দেখা গেছে, শুধু উপজেলা সদরেই ক্লিনিক রয়েছে ছয়টি। ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সংখ্যা ১৪টি। এর মধ্যে অনুমোদন আছে হাতেগোনা কয়েকটির। আবার কয়েকটির লাইসেন্স থাকলেও তার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে অনেক আগেই। অনেক ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পৌরসভার ট্রেড লাইসেন্স পর্যন্ত নেই।

ফরিদপুরের মধুখালী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে এবং উপজেলা সদরের আনাচ-কানাচে অনুমোদন ছাড়াই গড়ে উঠেছে একাধিক ডায়াগনস্টিক সেন্টার ও ক্লিনিক।

প্রতিষ্ঠানগুলোর নিজস্ব চিকিৎসক, নার্স, প্যাথলজিস্ট বা টেকনিশিয়ানও নেই, অথচ সাইনবোর্ড লাগিয়ে সাধারণ রোগীদের জীবন নিয়ে করছে ব্যবসা।

সরকারি তদারকি না থাকায় দালালচক্রের মাধ্যমে অসাধু ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিকরা প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে আসা রোগীদের ঠকিয়ে যাচ্ছেন প্রতিনিয়ত। অথচ এ বিষয়ে নেয়া হচ্ছে না কার্যকর পদক্ষেপ।

সরেজমিনে দেখা গেছে, শুধু উপজেলা সদরেই ক্লিনিক রয়েছে ছয়টি। ডায়াগনস্টিক সেন্টারের সংখ্যা ১৪টি। এর মধ্যে অনুমোদন আছে হাতেগোনা কয়েকটির। আবার কয়েকটির লাইসেন্স থাকলেও তার মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে অনেক আগেই। অনেক ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের পৌরসভার ট্রেড লাইসেন্স পর্যন্ত নেই।

ক্লিনিকগুলোতে বাইরের চিকিৎসক দিয়ে সিজারিয়ান অপারেশনও করা হচ্ছে নিয়মিত। কয়েকটি ক্লিনিকে আবার অস্ত্রোপচার করছেন সহযোগী চিকিৎসকরা। কিছু ক্লিনিকে নেই অপারেশন থিয়েটার পর্যন্ত। এ ছাড়া পরিবেশও অস্বাস্থ্যকর ও নোংরা।

সম্প্রতি জেলা সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে এমন চারটি ক্লিনিক ও হাসপাতালকে কার্যক্রম বন্ধ করার নির্দেশ দেয়া হলেও তা মানা হয়নি। উপসম ক্লিনিক, কবিতা ক্লিনিক, সুমী প্রাইভেট হাসপাতাল ও দি শাপলা ডায়াগনস্টিক সেন্টার নামে প্রতিষ্ঠানগুলো এখনও তাদের কার্যক্রম চালাচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে একটি ক্লিনিকের দায়িত্বে থাকা একজন জানান, তাদের নিজস্ব কোনো চিকিৎসক ও নার্স নেই। প্রসূতি এলে তারা ফরিদপুর থেকে চিকিৎসক এনে সিজারিয়ান অপারেশন করেন। লাইসেন্স আছে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আবেদন করা হয়েছে, এখনও অনুমোদন পাননি।

একটি ক্লিনিকে এক্স-রে করতে যাওয়া আসমা বেগম জানান, উপজেলা হাসপাতালের চিকিৎসক বাইরে থেকে এক্স-রে করতে বলেছেন। তাই বাধ্য হয়ে বাইরে থেকে দ্বিগুণ টাকায় এক্স-রে করিয়েছেন।

প্রশাসনের নজরদারি না থাকায় ইসিজি, আল্ট্রাসনোগ্রামসহ নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষায়ও তাদের কাছ থেকে ইচ্ছামতো টাকা আদায়ের অভিযোগ করেন তিনি।

শরিফ নামে ডায়াগনস্টিক সেন্টারের এক কর্মচারী জানান, বেশির ভাগ ডায়াগনস্টিক সেন্টারে প্যাথলজিস্ট নেই। যেগুলোতে রয়েছে তারা কেউই ডিপ্লোমা করা না। বেশির ভাগই দেখে দেখে শেখা লোক। তাদের দিয়েই পরীক্ষা-নিরীক্ষার কাজ করানো হচ্ছে।

তিনি আরও জানান, কিছু প্রতিষ্ঠান আবার রোগী আসার পর নমুনা ফরিদপুর নিয়ে পরীক্ষা করে এনে রিপোর্ট দেয়। সেই খরচও রোগীর কাছ থেকে তোলা হয়।

মধুখালী উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আবদুস সালাম বলেন, ‘ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে যেসব ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের অনুমোদন নেই সেগুলো বন্ধ করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

লাইসেন্সের বিষয়ে বলেন, ‘কেউ কেউ লাইসেন্সের জন্য আবেদনও করেছে। আবার অনেকে আবেদন করেনি। লাইসেন্স পাওয়ার জন্য যে দিকনির্দেশনা রয়েছে, তা বেশির ভাগেরই নেই।

‘এক মাস সময় দেয়া হয়েছে। এই সময়ের মধ্যে তাদের প্রতিষ্ঠানের কাগজপত্র ঠিক করতে বলা হয়েছে। এর ব্যত্যয় হলে তাদের বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নেয়া হবে।’

মধুখালী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশিকুর রহমান চৌধুরী জানান, অনুমোদনহীন ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারের বিরুদ্ধে শিগগিরই তারা ব্যবস্থা নেবেন।

আরও পড়ুন:
বছরে ১৮ লাখের বেশি স্ট্রোকের রোগী
চট্টগ্রাম মেডিক্যালে বিশেষায়িত স্ট্রোক ইউনিট
বরিশালে হিটস্ট্রোকে রিকশাচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

ওমিক্রন: জনসমাগম নিরুৎসাহিত করার নির্দেশনা

ওমিক্রন: জনসমাগম নিরুৎসাহিত করার নির্দেশনা

কক্সবাজার সৈকতে দেখা যাচ্ছে জনসমাগম। ছবি: নিউজবাংলা

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সব ধরনের জনসমাগম, পর্যটন স্থান, বিনোদন কেন্দ্র, কমিউনিটি সেন্টার, হল, থিয়েটার হল ও বিয়ে, পিকনিকসহ সামাজিক অনুষ্ঠানে ধারণক্ষমতা বা তার অর্ধেকের কম সংখ্যক লোক অংশগ্রহণ করবে। মসজিদসহ সব উপাসনালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে।

করোনাভাইরাসের দক্ষিণ আফ্রিকান ভেরিয়েন্ট ওমিক্রন আগের ডেল্টা ভেরিয়েন্টের চেয়ে অধিক সংক্রামক বলে ধারণা করা হচ্ছে। এর বিস্তার রোধে সামাজিক, রাজনৈতিকসহ সব ধরনের জনসমাগম নিরুৎসাহিত করতে সরকার ১৫ দফা নির্দেশনা দিয়েছে।

রোববার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (ডিজিজ কন্ট্রোল) প্রফেসর ডা. নাজমুল ইসলামের সই করা এক নোটিশে এসব নির্দেশনা দেয়া হয়।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর মনে করছে, দেশে ওমিক্রন সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়লে তা সামাল দেয়া কঠিন হয়ে পড়বে। আগে থেকে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা না নিলে তা দ্রুত ছড়িয়ে পড়ার শঙ্কা রয়েছে। বিশেষ করে সব বন্দর ও জনসমাগমের স্থানগুলোতে কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা দরকার।

এমন পরিস্থিতিতে সব ধরনের জনসমাগম নিরুৎসাহিত, দেশের সব বন্দরে হেলথ স্ক্রিনিং জোরদার, পর্যটন কেন্দ্রে অর্ধেক সংখ্যক মানুষের অংশ নেয়া, রেস্টুরেন্টে বসে খাওয়া নিয়ন্ত্রণসহ ১৫টি নির্দেশনা দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দক্ষিণ আফ্রিকা, নামিবিয়া, জিম্বাবুয়ে, বতসোয়ানা, এসওয়াতিনি, লেসোথো এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ঘোষণা অনুযায়ী অন্য দেশ থেকে আসা যাত্রীদের বন্দরগুলোতে স্বাস্থ্য পরীক্ষা জোরদার করতে হবে। সব বন্দরে স্ক্রিনিং জোরদার করতে হবে।

এ ছাড়া সব ধরনের সামাজিক, রাজনৈতিক, ধর্মীয় ও অন্যান্য জনসমাগম নিরুৎসাহিত করতে হবে। প্রয়োজনে বাইরে গেলে প্রত্যেক ব্যক্তিকে সবসময় সঠিক নিয়মে মাস্ক পরাসহ সব স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। রেস্তোরাঁয় বসে খাওয়ার ব্যবস্থা ধারণক্ষমতার অর্ধেক বা তার চেয়ে কম করতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, সব ধরনের জনসমাগম, পর্যটন স্থান, বিনোদন কেন্দ্র, কমিউনিটি সেন্টার, হল, থিয়েটার হল ও বিয়ে, পিকনিকসহ সামাজিক অনুষ্ঠানে ধারণক্ষমতা বা তার অর্ধেকের কম সংখ্যক লোক অংশগ্রহণ করবে।

মসজিদসহ সব উপাসনালয়ে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা নিশ্চিত করতে হবে বলেও নির্দেশনাতে উল্লেখ আছে।

এতে আরও বলা হয়, গণপরিবহন, সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টারে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করতে হবে। স্বাস্থ্যসেবা প্রতিষ্ঠানে সেবা গ্রহীতা, সেবা প্রদানকারী ও স্বাস্থ্যকর্মীদের সঠিকভাবে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে ভ্যাকসিন কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

আক্রান্ত দেশগুলো থেকে আসা যাত্রীদের ১৪ দিন কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করার বিষয়টিও জোরালোভাবে উল্লেখ করা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, করোনা উপসর্গ দেখা দিলে ও সন্দেহজনক করোনা রোগীদের আইসোলেশনে রাখতে হবে। করোনা রোগীর ঘনিষ্ঠ সংস্পর্শে যাওয়া ব্যক্তিদের কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর বলছে, করোনা লক্ষণযুক্ত ব্যক্তিকে আইসোলেশনে রাখা ও তার নমুনা পরীক্ষার জন্য স্থানীয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সমন্বয় করে সহায়তা করা যেতে পারে। অফিসে ঢোকা ও অবস্থানকালে মাস্ক পরাসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিষয়টি দাপ্তরিকভাবে নিশ্চিত করতে হবে।

করোনা নিয়ন্ত্রণ ও সচেতনতা তৈরি করতে কমিউনিটি পর্যায়ে মাইকিং ও প্রচারণা চালানো যেতে পারে বলেও সুপারিশ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ ক্ষেত্রে মসজিদ, মন্দিরের মাইক ব্যবহার এবং ইউনিয়ন পরিষদের সদস্যদের সম্পৃক্ত করা যেতে পারে।

আরও পড়ুন:
বছরে ১৮ লাখের বেশি স্ট্রোকের রোগী
চট্টগ্রাম মেডিক্যালে বিশেষায়িত স্ট্রোক ইউনিট
বরিশালে হিটস্ট্রোকে রিকশাচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

শ্রমিকের পুষ্টিকর নাস্তা নিশ্চিত করুন: শ্রম প্রতিমন্ত্রী

শ্রমিকের পুষ্টিকর নাস্তা নিশ্চিত করুন: শ্রম প্রতিমন্ত্রী

অপুষ্টিকর ও দ্রুত প্রক্রিয়াজাত খাবার খেয়ে মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকিতে পোশাক শ্রমিকরা, এমনটি উঠে এসেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাস্থ্য-অর্থনীতি ইনস্টিটিউটের নতুন গবেষণায়। ফাইল ছবি

অনুষ্ঠানে উপস্থিত পোশাক খাতের মালিকদের সবচেয়ে বড় দুই সংগঠন বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ নেতাদেরকে প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান বলেন, ‘পুষ্টিকর খাবার জনস্বাস্থ্যের তথা শারীরিক বৃদ্ধি, মেধা বিকাশ ও যথাযথ কর্মক্ষমতার জন্য খুবই গুরত্বপূর্ণ। তাই মালিকরা কারখানায় শ্রমিকদের যে নাস্তা দেয়, সেগুলো যেন পুষ্টিকর হয়। কারণ পুষ্টিকর খাবার খেয়ে শ্রমিক সুস্থ থাকলে উৎপাদন বাড়বে এবং এতে মালিকরাই লাভবান হবে। অন্যদিকে দীর্ঘমেয়াদী অপুষ্টি শ্রমিকের কর্মক্ষমতায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। জাতীয় অর্থনৈতিক উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করে।’

কারখানায় শ্রমিকদের পুষ্টিকর নাস্তা দিতে শিল্প মালিকদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন শ্রম ও কর্মসংস্থান প্রতিমন্ত্রী বেগম মন্নুজান সুফিয়ান। জানিয়েছেন, আয়রনের অভাবজনিত এনেমিয়ার কারণে বাংলাদেশে জিডিপির প্রায় ৮ শতাংশ কমে যায়।

রোববার রাজধানীর একটি হোটেলে ‘কর্মক্ষেত্র পুষ্টি কার্যক্রম: শিক্ষণ বিনিময়’ সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ আহ্বান জানান তিনি।

‘গ্লোবাল অ্যালায়েন্স ফর ইম্প্রুভড নিউট্রিশন-গেইন’ নামে একটি উদ্যোগের সহযোগিতায় কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত পোশাক খাতের মালিকদের সবচেয়ে বড় দুই সংগঠন বিজিএমইএ ও বিকেএমইএ নেতাদেরকে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘পুষ্টিকর খাবার জনস্বাস্থ্যের তথা শারীরিক বৃদ্ধি, মেধা বিকাশ ও যথাযথ কর্মক্ষমতার জন্য খুবই গুরত্বপূর্ণ। তাই মালিকরা কারখানায় শ্রমিকদের যে নাস্তা দেয়, সেগুলো যেন পুষ্টিকর হয়।

‘কারণ পুষ্টিকর খাবার খেয়ে শ্রমিক সুস্থ থাকলে উৎপাদন বাড়বে এবং এতে মালিকরাই লাভবান হবে। অন্যদিকে দীর্ঘমেয়াদী অপুষ্টি শ্রমিকের কর্মক্ষমতায় নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। জাতীয় অর্থনৈতিক উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করে।

এ বিষয়ে সরকারের করণীয় উল্লেখ করে শ্রম প্রতিমন্ত্রী বলেন, সরকার শুধু শ্রমিক নয় সকল জনগণের অপুষ্টির চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় দৃঢ় প্রতিজ্ঞ। বাংলাদেশের মানুষের পুষ্টির অবস্থার উন্নতির জন্য সরকার পুষ্টি নীতি-২০১৫ প্রণয়ন করেছে এবং দ্বিতীয় জাতীয় পুষ্টি কর্মপরিকল্পনা (২০১৬-২০২৫) গ্রহণ করেছে। সবাই মিলে সতের কোটি মানুষকে পুষ্টির বেড়াজালে আটকাতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশের উত্তরাঞ্চল থেকে মঙ্গাকে বিদায় করেছি, খাদ্য ঘাটতিকে দূর করেছি, মধ্যম আয়ের উন্নীত হয়েছি।’

নীতি, প্রশাসনিক দক্ষতা ও রাজনৈতিক অঙ্গীকারের মাধ্যমে দেশের শুধু শ্রমজীবী মানুষই নয় সব নাগরিকের অপুষ্টিজনিত ঘাটতি দূর করার লক্ষ্য অর্জনে সরকার সফল হবে বলে প্রতিমন্ত্রী আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

প্রতিমন্ত্রী অনুষ্ঠানে সরকারী বেসরকারী উদ্যোগে একটি পুষ্টি কালচার তৈরির আহ্বান জানান।

সভাপতির বক্তৃতায় শ্রম ও কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সচিব এহছানে এলাহী বলেন, ‘সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে স্বাস্থ্যই সম্পদ। আগামীতে কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের মাধ্যমে পুষ্টি বিষয়ে শ্রমিকদের মধ্যে সচেতনতা বাড়াতে আরও বেশি বেশি প্রকল্প গ্রহণ করা হবে।’

সেমিনারে কল-কারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর এর মহাপরিদর্শক মো. নাসির উদ্দিন আহমেদ, বিজিএমইএর সভাপতি ফারুক হাসান, বিকেএমইএর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মনসুর আহমেদ, আইএলওর কান্ট্রি ডিরেক্টর তোমো পুতিআইনেন, ন্যাশনাল নিউট্রেশন সার্ভিসের লাইন ডিরেক্টর ডা. এস এম মোস্তাফিজুর রহমান, কল-কারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তরের যুগ্ম-মহাপরিদর্শক ডা. মো. মোস্তাফিজুর রহমান এবং গেইনের কান্ট্রি ডিরেক্টর ডা. রুদাবা খন্দকার বক্তব্য দেন।

ওয়ার্ক ফোর্স নিউটেশন এবং ইভালুয়েশন এন্ড লার্নিং এর ওপর মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. নাজমা শাহীন এবং ডা. সাইদ আবুল হামিদ।

আরও পড়ুন:
বছরে ১৮ লাখের বেশি স্ট্রোকের রোগী
চট্টগ্রাম মেডিক্যালে বিশেষায়িত স্ট্রোক ইউনিট
বরিশালে হিটস্ট্রোকে রিকশাচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

‘ওমিক্রন’ ঠেকাতে বিমানবন্দরে সর্বোচ্চ সতর্কতার নির্দেশ

‘ওমিক্রন’ ঠেকাতে বিমানবন্দরে সর্বোচ্চ সতর্কতার নির্দেশ

আফ্রিকার কোনো দেশের সঙ্গেই বাংলাদেশের সরাসরি আকাশপথে যোগাযোগ নেই। তবে তৃতীয় কোনো দেশে ট্রানজিট নিয়ে দেশে প্রবেশের সুযোগ রয়েছে। তাই ট্রানজিট যাত্রীর মাধ্যমেও যাতে দেশে ওমিক্রন প্রবেশ করতে না পারে সে জন্য সতর্ক থাকার কথা জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী।   

সাউথ আফ্রিকাসহ আফ্রিকা ও ইউরোপের কয়েকটি দেশে ছড়িয়ে পড়া করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন ঠেকাতে দেশের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরগুলোকে সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থানে থাকতে নির্দেশ দিয়েছে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়। এ ক্ষেত্রে আক্রান্ত দেশগুলো থেকে আসা যাত্রীদের বিমানবন্দরে আলাদা স্ক্রিনিংয়ের আওতায় আনার কথাও বলা হয়েছে।

আফ্রিকার কোনো দেশের সঙ্গেই বাংলাদেশের সরাসরি আকাশপথে যোগাযোগ নেই। তবে তৃতীয় কোনো দেশে ট্রানজিট নিয়ে দেশে প্রবেশের সুযোগ রয়েছে। তাই ট্রানজিট যাত্রীর মাধ্যমেও যাতে দেশে ওমিক্রন প্রবেশ করতে না পারে সে জন্য সতর্ক থাকার কথা জানিয়েছেন বেসামরিক বিমান পরিবহন প্রতিমন্ত্রী মো. মাহবুব আলী।

ওমিক্রন ঠেকাতে জাতীয় পরামর্শক কমিটি যে পরামর্শ দিয়েছে তাতে আক্রান্ত দেশের সঙ্গে ফ্লাইট চলাচল বন্ধ থাকা অন্যতম।

করোনাবিষয়ক জাতীয় পরামর্শক কমিটি ৪৮তম সভা শেষে যে সুপারিশ দিয়েছে তাতে বলা হচ্ছে, করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন সাউথ আফ্রিকা থেকে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ছড়িয়ে পড়ছে। এর বিস্তার রোধ করার জন্য এশিয়া, ইউরোপ ও আমেরিকার অনেক দেশ, সাউথ আফ্রিকাসহ সে অঞ্চলের কয়েকটি দেশ (জিম্বাবুয়ে, নামিবিয়া, বতসোয়ানা, সোয়াজিল্যান্ড) হতে যাত্রী আগমনের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে (প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ফ্লাইটসহ)।

এ পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশেও সংক্রমিত দেশ থেকে আসা যাত্রী প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপের সুপারিশ করে কমিটি।

এ ছাড়া বাংলাদেশে ঢোকার ১৪ দিনের মধ্যে এসব দেশে গেলে তাকে ১৪ দিন বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টিনে রাখার কথা বলা হয়েছে।

বিমান প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জাতীয় পরামর্শক কমিটির পরামর্শ নিয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিমানবন্দরগুলোর বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবে। আমাদের মন্ত্রণালয় থেকে আমরা সেটি কার্যকর করার উদ্যোগ নেব। যদিও সাউথ আফ্রিকার সঙ্গে আমাদের সরাসরি কোনো ফ্লাইট নেই, তবুও ট্রানজিট নিয়ে আসা যাত্রীদের বিশেষ স্ক্রিনিংয়ের আওতায় আমরা আনতে বলেছি।

তিনি বলেন, ‘আমাদের এখন থেকেই সতর্ক থাকতে হবে এবং এ বিষয়টি নিয়ে আমি এরই মধ্যে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যানের সঙ্গেও কথা বলেছি। আমাদের সর্বোচ্চ সতর্ক অবস্থায় থাকতে হবে। পাশাপাশি যারা বিদেশ থেকে আসবেন তাদেরও অনুরোধ করব তারা যেন অন্তত নিজের পরিবারের কথা চিন্তা করে হলেও সতর্ক হন এবং সরকারের নির্দেশনাগুলো মেনে চলেন।’

মঙ্গলবার সাউথ আফ্রিকায় করোনাভাইরাসের নতুন এ ধরনটি প্রথম শনাক্ত হয়। এক দিন পর এই ধরনকে ওমিক্রন নাম দেয় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। বলা হচ্ছে, করোনার এই ধরন খুবই উদ্বেগের।

এরই মধ্যে নিজেদের দেশে দুজনের শরীরে ওমিক্রন শনাক্ত হওয়ার কথা জানিয়েছে যুক্তরাজ্য।

ওমিক্রন কতটা প্রাণঘাতী ও সংক্রামক সেসব জানতে কাজ করছেন বিজ্ঞানীরা। অথচ এর আগেই আফ্রিকার দেশগুলোর ওপর ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা দিয়ে বসে আছে পশ্চিমা দেশগুলো।

সাউথ আফ্রিকা, নামিবিয়া, জিম্বাবুয়ে, বতসোয়ানা, লেসেথোর মতো দেশগুলোর নাগরিকের ওপর ভ্রমণে নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে যুক্তরাজ্য, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলো।

চীনের উহানে আবির্ভূত হওয়ার পর নতুন এই করোনাভাইরাসের যতগুলো ধরন এখন পর্যন্ত শনাক্ত হয়েছে, তার মধ্যে ওমিক্রনেই জিন বিন্যাসে পরিবর্তন এসেছে সবচেয়ে বেশি।

এর মানে হলও, করোনাভাইরাসের যেসব টিকা এ পর্যন্ত তৈরি হয়েছে, সেগুলো ওমিক্রনের ক্ষেত্রে কার্যকর নাও হতে পারে। আবার জিন বিন্যাসে পরিবর্তনের কারণে এ ভাইরাস অনেক বেশি দ্রুত ছড়ানোর ক্ষমতা রাখতে পারে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ওমিক্রনকে তালিকাভুক্ত করেছে ‘ভ্যারিয়েন্ট অব কনসার্ন’ বা ‘উদ্বেগজনক ধরন’ হিসেবে।

তবে তারা এটাও বলছে, করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ‘ওমিক্রন’ কতটা প্রভাব ফেলতে পারে সেটা বুঝতে কয়েক সপ্তাহ সময় লাগবে।

আরও পড়ুন:
বছরে ১৮ লাখের বেশি স্ট্রোকের রোগী
চট্টগ্রাম মেডিক্যালে বিশেষায়িত স্ট্রোক ইউনিট
বরিশালে হিটস্ট্রোকে রিকশাচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন