লক্কড়ঝক্কড় ফেরিতেই ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা পারাপার

লক্কড়ঝক্কড় ফেরিতেই ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা পারাপার

শত বছরের পুরোনো ডাম্ব ফেরি। এসব ফেরি মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া থেকে মাদারীপুরের বাংলাবাজার ও কাঁঠালবাড়ী নৌরুটে চলাচল করে। ছবি: নিউজবাংলা

বিআইডব্লিউটিসির কর্মকর্তারা বলছেন, শতবর্ষের পুরোনো ডাম্ব ফেরিগুলো এখন খুব একটা চালানো হয় না। যখন ঘাটে চাপ বেশি থাকে, তখন চালানো হয়। আগামী বছর আরও পাঁচটি নতুন ফেরি দেশে আনা হবে। তখন এসব ডাম্ব ফেরি বন্ধ করার সুপারিশ করা যাবে। আপাতত এসব দিয়েই চলতে হবে।

শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে শত বছরের পুরোনো ফেরি দিয়ে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে রাজধানী ঢাকার সড়ক যোগাযোগ রক্ষা করা হচ্ছে। ডাম্ব ফেরি হিসেবে পরিচিত জোড়াতালি দেয়া ফেরিগুলোর সবই মেয়াদোত্তীর্ণ হয়েছে বহু বছর আগে।

হালকা-মাঝারি ফেরির মেয়াদ থাকলেও পদ্মা নদীতে ড্রেজিং করায় মাঝে মাঝেই দুর্ঘটনাকবলিত হচ্ছে। তবু কোনো রকম ভাঙাচোরা ফিটনেসবিহীন ফেরি জোড়াতালি দিয়ে পদ্মা নদী পারাপার করছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থা (বিআইডব্লিউটিসি)।

বেশি নিরাপদ ভেবে যানবাহনের পাশাপাশি যাত্রীরাও ফেরিতে নদী পার হয়।

গত ২৭ অক্টোবর মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে শাহ আমানত ফেরি উল্টে যাওয়ার ঘটনাকে বড় ধরনের অশনি সংকেত মনে করছেন যাতায়াতকারীরা। তবে বিআইডব্লিউটিসির পরিচালক (বাণিজ্য) এস এম আশিকুজ্জামান দাবি করেছেন, আগামী বছরের শুরুতেই নতুন পাঁচটি ডাম্ব ফেরি দেশে আনা হবে।

বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ঘাট কর্তৃপক্ষের তথ্য মতে, একমাত্র শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটেই শত বছরের পুরোনো ৬টি ডাম্ব ফেরি চলাচল করে। এগুলো হচ্ছে ‘রামশ্রী’, ‘টাপলো’, ‘রানীগঞ্জ’, ‘যমুনা’, ‘রানীক্ষেত’ ও ‘রায়পুরা’। ১ থেকে ৩০ বছর পুরোনো কে-টাইপ ৬টি ফেরি হলো ‘ক্যামেলিয়া’, ‘কুঞ্জলতা’, ‘কদম’, ‘কাকলী’, ‘কিশোরী’ ও ‘কুমিল্লা’ এবং ৮ থেকে ৫০ বছর পুরোনো রো রো ফেরিগুলো হলো ‘ভাষাসৈনিক গোলাম মাওলা’, ‘শাহ্ পরাণ’, ‘এনায়েতপুরী’, ‘শাহ্ জালাল’, ‘বীরশ্রেষ্ঠ জাহাঙ্গীর’ ও ‘ফরিদপুরী’। এ ছাড়া আরও একটি ছোট ফেরি ‘কর্ণফুলী’ মাঝে মাঝে চলাচল করে। এ বছর কে-টাইপ ফেরি ‘কুঞ্জলতা’ ও ‘কদম’ নতুন যোগ করা হয়। এ ছাড়া ‘ক্যামেলিয়া’ ২০১৫ সালে এবং ‘কিশোরী’ ২০১৮ সালে নৌপথে নামানো হয়।

লক্কড়ঝক্কড় ফেরিতেই ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা পারাপার

স্বাভাবিক সময়ে এ রুটে প্রতিটি রো রো ফেরিতে গড়ে প্রতিদিন ১৫০ থেকে ২০০টি, কে-টাইপ ফেরি ১০০ থেকে ১২০টি এবং ডাম্ব ফেরিতে ১৫০ থেকে ২০০টি ছোট-বড় যানবাহন পারাপার করে। মাদারীপুরের বাংলাবাজার ও ও মুন্সিগঞ্জে শিমুলিয়া নৌপথ ব্যবহার করে প্রতিদিন প্রায় ৫০০ থেকে সাড়ে ৫০০ যানবাহন পারাপার হয়ে থাকে। এর মধ্যে বাস থাকে অর্ধেক; বাকি ট্রাক ও প্রাইভেট কার-মাইক্রোবাসসহ অন্যান্য ছোট গাড়ি। এসব যান ও গাড়ি ছাড়াও হাজারখানেক মানুষ প্রতিদিন নদী পারাপার করে।

নৌরুটের বিআইডব্লিউটিসি সূত্রে জানা যায়, মুন্সিগঞ্জ ও মাদারীপুর জেলাকে সংযুক্তকারী নৌরুট ১৯৯০ সালে কাওড়াকান্দি এলাকায় চালু করা হয়। তারপর ২০১৭ সালে ৫ কিলোমিটার দূরত্ব কমিয়ে কাঁঠালবাড়ী এলাকায় ঘাট তৈরি করা হয়। ২০২০ সালে সেখান থেকে নতুন করে মাত্র ৫ মিটার দূরে ‘বাংলাবাজার’ এলাকায় স্থানান্তরিত করা হয় ঘাট।

নৌপথ সচল রাখতে আর যাতায়াত সহজ করার জন্যে এ রুটটি বিভিন্ন সময়ে সরানো হয়েছে। এ রুটে ৩০ বছর ধরে পুরোনো ডাম্ব ফেরি ও নতুন পুরাতন ফেরিগুলো চলাচল করেছে।

দুই ঘাটের সূত্র মতে, গত জুলাইয়ের শেষ দিক ও আগস্ট মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত ২৪ দিনে পদ্মায় তীব্র স্রোত অব্যাহত থাকায় পদ্মা সেতুর তিনটি পিলারে চারবার ফেরির ধাক্কা লাগে। এতে আহত হন বেশ কয়েকজন যাত্রী। ফেরির ধাক্কায় ক্ষতিগ্রস্ত হয় সেতুর পাইল ক্যাপ।

এই পরিস্থিতিতে নৌপথে সব ধরনের দুর্ঘটনা এড়াতে ১৮ আগস্ট দুপুরের পর থেকে এই নৌপথে ফেরি চলাচল পুরোপুরি বন্ধ ঘোষণা করা হয়। তবে ৩ অক্টোবর থেকে পরীক্ষামূলক তিন থেকে পাঁচটি ফেরি চলাচল করে। এতেও ঝুঁকি মনে করে গত ২৫ অক্টোবর থেকে এ রুটের সব ফেরি বন্ধ করে ছয়টি ডাম্ব ফেরি, চারটি রো রো ফেরি ও তিনটি কে-টাইপ ফেরি নোঙর করে রাখা আছে। তবে বছরের স্বাভাবিক সময়ে এই নৌরুটে সব মিলিয়ে ১৮টি ফেরি চলাচল করে।

লক্কড়ঝক্কড় ফেরিতেই ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা পারাপার

ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে অপেক্ষমাণ ট্রাকচালক ও শ্রমিকদের।

বাংলাবাজার ঘাটের টার্মিনালে অপেক্ষমাণ বরিশাল থেকে আসা ট্রাকচালক আব্দুর রহিম বলেন, ‘আগে জানতাম নদীতে লঞ্চ-স্পিডবোট ডুবে, এখন দেখি ফেরিও ডুবে। তা হলে আমাদের জীবনের নিরাপত্তা কী? আমরা দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের মানুষ এ রুট হয়ে ঢাকায় যাতায়াত করি। ফেরি ডুবে যাওয়ার ঘটনায় আমরাও শঙ্কিত। সরকারের উচিত, ফেরি মেরামত করা অথবা নতুন ফেরি দেয়া।’

আরেক চালক সফুলউদ্দিন বলেন, ‘আমি ২৮ অক্টোবর এসে এখন আটকে আছি। মাঝে মাঝে ছোট ফেরি চলে আবার বন্ধ থাকে। কীভাবে পদ্মা পাড়ি দেব, এটা নিয়েই টেনশনে আছি। আবার ফেরি ডুবে যাওয়ার কথা আগে শুনতাম না, এখন প্রায়ই ফেরি ডুবে। আমরা নদীতে যানবাহন নিয়ে মরতে চাই না।’

মাদারীপুর জেলা উন্নয়ন-সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি মাসুদ পারভেজ বলেন, ‘শুনেছি দেশের অধিকাংশ ফেরির মেয়াদ শেষ। এ জন্য পুরোপুরি দায়ী বিআইডব্লিউটিসি ও নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়। লঞ্চসহ অন্য নৌযানের যেমন ফিটনেস প্রয়োজন, তেমন ফেরিরও ফিটনেস ও মেয়াদোত্তীর্ণের বিষয়ে পদক্ষেপ নিতে হবে, না হলে ফেরি দুর্ঘটনার জন্যে সরকারসহ কর্তৃপক্ষকে দায় নিতে হবে। কোনো রকম তদন্ত কমিটি করে দায়ভার এড়াতে পারবে না।’

এ ব্যাপারে বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের এজিএম (মেরিন বিভাগ) আহমদ আলী জানান, ‘দেশের একমাত্র শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌরুটে ৬টি ডাম্ব ফেরি বা টানা ফেরি চলাচল করে। এর বাইরে অন্য কোথাও এসব ফেরি চলাচল করে বলে জানা নেই। এসব ফেরির আয়ু ১০০ বছরের বেশি। এগুলোকে ইঞ্জিলচালিত নৌযান দিয়ে টেনে চালানো হয়, যে কারণে ফেরির তলা ফেটে বা নষ্ট হলেও বারবার মেরামত করা যায়। প্রতিটি ডাম্ব ফেরি তিন বছর পরপর তলা চেক করে মেরামত করা হয়।’

যানবাহন ও যাত্রীদের নিরাপত্তার বিষয়ে আহমদ আলী আরও বলেন, ‘সাধারণত ফেরির তলায় বড় ধরনের আঘাত না পেলে ফেটে যায় না। আর ফেটে গেলেও ডুবতে সময় লাগে। আর মাঝারি কে-টাইপ এবং রো রো ফেরির ত্রুটি হলে নিয়ন্ত্রণ না করতে পারলে কাত হয়ে ডুবে যায়।

‘মেয়াদোত্তীর্ণ ফেরি কম থাকায় ত্রুটিপূর্ণ ফেরি দিয়েই আমাদের নৌপথ সচল রাখতে হয়। ফেরির মাস্টাররা সাবধানে নদীতে চলাচল করেন। তবে এটুকু বলা যায়, লঞ্চ বা স্পিডবোট যেভাবে দ্রুত ডুবে যায়, সেটা ফেরিতে হয় না। ডুবতে হলেও সময় লাগে।’

লক্কড়ঝক্কড় ফেরিতেই ঝুঁকি নিয়ে পদ্মা পারাপার

বিআইডব্লিউটিসি বলছে, প্রয়োজনের তুলনায় ফেরির স্বল্পতা আছে। ফলে বাধ্য হয়ে চালানো হচ্ছে ভাঙাচোরা ফেরি।

বিআইডব্লিউটিসির পরিচালক (বাণিজ্য) এস এম আশিকুজ্জামান মুঠোফোনে বলেন, ‘পদ্মা নদীতে বছরজুড়েই ড্রেজিং কার্যক্রম চলে, ফলে মাঝে মাঝে ফেরির তলা ফেটে যায়। পরে সেগুলো মেরামত করে আবার নৌপথে নামানো হয়। ফেরির মেয়াদোত্তীর্ণ বলে কোনো বিষয় নেই। পাঁচ-ছয় বছরের ফেরিগুলোও যেমন মাঝেমধ্যেই সমস্যা হয়, তেমনি ৪০ বছরের ফেরিগুলোরও তেমন সমস্যা হয়। সমস্যা হলেই বিআইডব্লিউটিএর চিফ ইঞ্জিনিয়ার এসে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করেন এবং সমস্যার সমাধান করেন।’

ডাম্ব ফেরির বিষয়ে এস এম আশিকুজ্জামান বলেন, ‘এসব ফেরি এখন খুব একটা চালানো হয় না। যখন ঘাটে চাপ বেশি থাকে, তখন চালানো হয়। এ ছাড়া এসব ফেরি একটি শক্তিশালী ইঞ্জিন দিয়ে টেনে নেয়া হয়। ফলে ফেরি ক্ষতিগ্রস্ত হলে নিরাপদ স্থানে নিয়ে যাওয়া সম্ভব। তারপরও আগামী বছর আরও অন্তত পাঁচটি নতুন ফেরি দেশে আনা হবে। তখন এসব ডাম্ব ফেরি বন্ধ করার সুপারিশ করা যাবে। আপাতত এসব দিয়েই চলতে হবে।’

আরও পড়ুন:
‘গাড়ি দুইডা নদীতে, ভিক্ষা ছাড়া উপায় নাই’
ফেরি দুর্ঘটনা-ফ্লাইওভারে ফাটলে দায়ীদের বিচার দাবি
পাটুরিয়ায় ফেরি দুর্ঘটনায় দৌলতদিয়ায় ৩ কিমি যানজট
আমানত শাহকে উদ্ধারে রুস্তম

শেয়ার করুন

মন্তব্য

এএসপি নিয়োগে পরিবর্তন আসবে: আইজিপি

এএসপি নিয়োগে পরিবর্তন আসবে: আইজিপি

বাংলাদেশ পুলিশ ও টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের যৌথ কর্মশালায় বক্তব্য রাখছেন আইজিপি বেনজীর আহমেদ। ছবি: নিউজবাংলা

আইজিপি জানান, প্রায় ৪০ বছর পর কনস্টেবল নিয়োগে পরিবর্তন আনা হয়েছে। এ জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। এ সময় সহকারী পুলিশ সুপার পদে নিয়োগের ক্ষেত্রেও পরিবর্তন আনা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

কনস্টেবল, সাব-ইন্সপেক্টর ও সার্জেন্ট নিয়োগ প্রক্রিয়ায় পরিবর্তন এসেছে। এবার সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) পদে নিয়োগের ক্ষেত্রেও পরিবর্তন আনা হবে বলে জানিয়েছেন আইজিপি বেনজীর আহমেদ।

শনিবার রাজধানীর একটি হোটেলে বাংলাদেশ পুলিশ ও টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের যৌথ আয়োজনে পরিবর্তীত পদ্ধতিতে বাংলাদেশ পুলিশের ক্যাডেট সাব-ইন্সপেক্টর পদে নিয়োগ সম্পর্কিত কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা জানান।

আইজিপি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ ২০৪১ সালে উন্নত দেশে পরিণত হবে। বাংলাদেশ পুলিশকে উন্নত দেশের উপযোগী করে গড়ে তোলার লক্ষ্যে কনস্টেবল, সাব-ইন্সপেক্টর ও সার্জেন্ট নিয়োগ প্রক্রিয়া সংশোধনের মধ্য দিয়ে এ পরিবর্তনের সূচনা করা হয়েছে।’

তিনি জানান, প্রায় ৪০ বছর পর কনস্টেবল নিয়োগে পরিবর্তন আনা হয়েছে। এ জন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। এ সময় সহকারী পুলিশ সুপার পদে নিয়োগের ক্ষেত্রেও পরিবর্তন আনা হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

সম্প্রতি নতুন পদ্ধতিতে সম্পন্ন হওয়া কনস্টেবল নিয়োগ প্রসঙ্গে দেশের জনগণকে নিশ্চয়তা দিয়ে তিনি বলেন, কনস্টেবল পদে জব মার্কেট থেকে ‘বেস্ট অব দ্য বেস্ট’ প্রার্থী নিয়োগে আমরা সক্ষম হয়েছি। আমরা মেধার পাশাপাশি শারীরিকভাবে যোগ্য প্রার্থীদের বাছাই করছি।

তিনি আশা প্রকাশ করেন, আগামী এক-দুই বছরের মধ্যে মানুষ এ ক্ষেত্রে পরিবর্তন দেখবে।

বাংলাদেশ পুলিশের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় সহযোগিতা করার জন্য টেলিটক কর্তৃপক্ষকে ধন্যবাদ জানিয়ে আইজিপি বলেন, ‘ভবিষ্যতেও টেলিটকের সঙ্গে কাজ করতে বাংলাদেশ পুলিশ আগ্রহী।’

ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব বলেন, ‘সরকারি সংস্থা টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেড বাংলাদেশ পুলিশসহ বিভিন্ন সরকারি সংস্থার নিয়োগ প্রক্রিয়ায় যুক্ত থেকে স্বচ্ছ নিয়োগে অবদান রাখছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নে টেলিটক বিভিন্ন সরকারি সেবা স্বল্প খরচে সহজে জনগণের মাঝে পৌঁছে দেয়ার মাধ্যমে মানুষের আস্থা অর্জনে সক্ষম হয়েছে।’

শনিবারের কর্মশালা নিয়োগ প্রক্রিয়ায় যুক্ত কর্মকর্তাদের দক্ষতা বাড়াবে বলেও আশা প্রকাশ করেন তিনি।

টেলিটক বাংলাদেশ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক বলেন, ‘টেলিটক পুলিশের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় যুক্ত থেকে স্বচ্ছ নিয়োগে অবদান রাখছে।’

কর্মশালায় বাংলাদেশ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের সহকারী পুলিশ সুপার থেকে অতিরিক্ত ডিআইজি পদমর্যাদার কর্মকর্তারা অংশগ্রহণ করেন। ভার্চুয়ালি যুক্ত ছিলেন সব রেঞ্জ ডিআইজি এবং জেলার পুলিশ সুপাররাও।

আরও পড়ুন:
‘গাড়ি দুইডা নদীতে, ভিক্ষা ছাড়া উপায় নাই’
ফেরি দুর্ঘটনা-ফ্লাইওভারে ফাটলে দায়ীদের বিচার দাবি
পাটুরিয়ায় ফেরি দুর্ঘটনায় দৌলতদিয়ায় ৩ কিমি যানজট
আমানত শাহকে উদ্ধারে রুস্তম

শেয়ার করুন

কুয়েট শিক্ষকের মৃত্যুতে অস্বাভাবিকতা থাকলে ব্যবস্থা: প্রধানমন্ত্রী

কুয়েট শিক্ষকের মৃত্যুতে অস্বাভাবিকতা থাকলে ব্যবস্থা: প্রধানমন্ত্রী

কুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক সেলিম আহমেদ। ছবি: সংগৃহীত

গত ৩০ নভেম্বর বিকেলের দিকে কুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক সেলিমের মৃত্যু হয়। এর পরই অভিযোগ ওঠে কিছু ছাত্রের লাঞ্ছনা ও অপদস্তের শিকার হয়ে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন তিনি।

খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) অধ্যাপক সেলিম হোসেনের মৃত্যুতে অস্বাভাবিকতা পাওয়া গেলে তদন্তের মাধ্যমে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সংবাদমাধ্যমে শনিবার পাঠানো বিবৃতিতে প্রধানমন্ত্রীর এ নির্দেশের কথা জানান আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

গত ৩০ নভেম্বর বিকেলের দিকে কুয়েটের ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক সেলিমের মৃত্যু হয়। এর পরই অভিযোগ ওঠে কিছু ছাত্রের লাঞ্ছনা ও অপদস্তের শিকার হয়ে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন সেলিম।

এ-সংক্রান্ত কয়েকটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

ভিডিওতে দেখা যায়, কয়েকজন ছাত্র ক্যাম্পাসের রাস্তায় ড. সেলিম হোসেনের সঙ্গে খারাপ ব্যবহার করছেন। পরে তারা সেলিমকে অনুসরণ করে তড়িৎ প্রকৌশল ভবনে ব্যক্তিগত কক্ষে প্রবেশ করেন। প্রায় ৩০ মিনিট পর তারা সেখান থেকে বের হয়ে যান। পরে অধ্যাপক সেলিম সেখান থেকে বের হয়ে বাসায় ফেরেন।

ওই শিক্ষকের স্ত্রী জানান, বাসায় ফেরার পর সেলিম টয়লেটে যান। বের হতে দেরি হওয়ায় তিনি দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে দেখেন অচেতন অবস্থায় পড়ে আছেন তার স্বামী। সেখান থেকে উদ্ধার করে তাকে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

কিছু ছাত্রের কারণে এ শিক্ষকের মৃত্যু হয়েছে দাবি তুলে বৃহস্পতিবার প্রতিবাদ র‍্যালি ও সমাবেশ করে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি।

শিক্ষক সমিতির পক্ষ থেকে বলা হয়, উচ্ছৃঙ্খল কিছু ছাত্রের অপমান, অবরুদ্ধ ও মানসিক নির্যাতনে অধ্যাপক সেলিমের মৃত্যু হয়।

সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে প্রকৃত অপরাধীদের বিচারের আওতায় এনে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার না করা পর্যন্ত শিক্ষকরা সব ধরনের একাডেমিক কার্যক্রম থেকে বিরত থাকবেন বলেও ঘোষণা দেন।

এই প্রেক্ষাপটে ১৩ ডিসেম্বর পর্যন্ত কুয়েট বন্ধ ঘোষণা করা হয়। এ সিদ্ধান্তের পর শিক্ষার্থীরা হল ছেড়েছেন। অনাকাঙ্ক্ষিত ঘটনা এড়াতে ক্যাম্পাসে অতিরিক্ত পু‌লিশ মোতায়েন রয়েছে।

৯ ছাত্র বহিষ্কার

কুয়েট শিক্ষক সেলিম হোসেনের মৃত্যুর ঘটনায় ৯ ছাত্রকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

বহিষ্কার হওয়া ছাত্রদের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদমান নাহিয়ান সেজান আছেন।

কুয়েটের জনসংযোগ কর্মকর্তা মনোজ কুমার মজুমদার বলেন, সেলিমের মৃত্যুর ঘটনায় সিসিটিভির ফুটেজ পর্যালোচনা করা হয়। ফুটেজ দেখে শিক্ষকের সঙ্গে ওই ৯ ছাত্রের অসদাচরণের বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া গেছে।

যাদের বহিষ্কার করা হয়েছে তারা হলেন সিএসই বিভাগের সাদমান নাহিয়ান সেজান, সিই বিভাগের তাহমিদুল হক ইশরাক, এলই বিভাগের সাদমান সাকিব, আ স ম রাগিব আহসান মুন্না, সিই বিভাগের মাহমুদুল হাসান, এমই বিভাগের মোহাম্মাদ কামরুজ্জামান, সিএসই বিভাগের রিয়াজ খান নিলয়, এমই বিভাগের ফয়সাল আহমেদ রিফাত ও এমএসই বিভাগের নাইমুর রহমান অন্তু।

আরও পড়ুন:
‘গাড়ি দুইডা নদীতে, ভিক্ষা ছাড়া উপায় নাই’
ফেরি দুর্ঘটনা-ফ্লাইওভারে ফাটলে দায়ীদের বিচার দাবি
পাটুরিয়ায় ফেরি দুর্ঘটনায় দৌলতদিয়ায় ৩ কিমি যানজট
আমানত শাহকে উদ্ধারে রুস্তম

শেয়ার করুন

বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় ঐক্যের ডাক রাষ্ট্রপতির

বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় ঐক্যের ডাক রাষ্ট্রপতির

ঢাকার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে শনিবার দুপুরে বিশ্ব শান্তি সম্মেলনের উদ্বোধনী আয়োজনে বক্তব্য দেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। ছবি: সংগৃহীত

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, ‘আমাদের অবশ্যই জাতি, বর্ণ, ধর্ম এবং জাতিগত বৈষম্যের অবসান ঘটাতে হবে। নিশ্চিত করতে হবে সবার জন্য সমান সুযোগ।’

সব ধরনের বৈষম্যের অবসান ঘটিয়ে বিভেদের পথ ছেড়ে হাতে হাত রেখে শান্তির পথে চলতে বিশ্বের সব প্রান্তের মানুষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

ঢাকার হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে শনিবার দুপুরে বিশ্ব শান্তি সম্মেলনের উদ্বোধনী আয়োজনে যোগ দিয়ে রাষ্ট্রপতি এ আহ্বান জানান।

করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে বঙ্গভবন প্রান্ত থেকে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত ছিলেন তিনি।

বিশ্ব শান্তি প্রতিষ্ঠায় নেতৃত্ব দেবে বাংলাদেশ— এমন স্বপ্ন নিয়ে ঢাকায় শুরু হয়েছে দুই দিনের বিশ্ব শান্তি সম্মেলন।

পৃথিবীতে শান্তি প্রতিষ্ঠায় বাংলাদেশের যে লড়াই, সেই বার্তাটি সবার কাছে পৌঁছাতে চায় ঢাকা।

মো. আবদুল হামিদ বলেন, ‘আমাদের অবশ্যই জাতি, বর্ণ, ধর্ম এবং জাতিগত বৈষম্যের অবসান ঘটাতে হবে। নিশ্চিত করতে হবে সবার জন্য সমান সুযোগ।’

বিশ্বের সব মানুষের জন্য একটি ‘সুষ্ঠু আন্তর্জাতিক ব্যবস্থাও অপরিহার্য’ উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘আমাদের ভুলে গেলে চলবে না, আমরা সবাই একটি গ্রহে ভাগাভাগি করে বসবাস করি, যেখানে আমরা আমাদের দায়িত্বটাও ভাগ করে নিয়েছি।’

বাংলাদেশের জাতীয় নিরাপত্তার ক্ষেত্রেও ‘বিশ্ব শান্তি’ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন রাষ্ট্রপতি।

তিনি বলেন, ‘শান্তিপূর্ণভাবে সংঘাতের সমাধান এবং বিশ্বব্যাপী শান্তি প্রতিষ্ঠায় আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখব। বিভেদের পথ ছেড়ে হাতে হাত রেখে সবাইকে শান্তির পথে একসঙ্গে চলার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি।’

বর্তমান বিশ্ব অসংখ্য চ্যালেঞ্জ ও সংঘাতের মুখোমুখি বলে মনে করেন আবদুল হামিদ। কোভিড-১৯ মহামারির মধ্য দিয়ে সিস্টেমের দুর্বলতা সামনে এসেছে বলেও মত দেন তিনি।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘আমরা যদি ঐক্যবদ্ধ না হই এবং পারস্পরিক শান্তি ও সম্প্রীতি নিশ্চিত না করি, তাহলে আমাদের শিশুদের এবং ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি নিরাপদ ও বাসযোগ্য পৃথিবী সুরক্ষিত করতে পারব না। জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাবও এর মধ্যে ঝুঁকি তৈরি করেছে।’

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী মিলিয়ে বাংলাদেশ ইতিহাসের দুটি মাইলফলকে পৌঁছেছে উল্লেখ করেন রাষ্ট্রপতি।

তিনি বলেন, ‘আমি মনে করি ঢাকায় বিশ্ব শান্তি সম্মেলন বিশ্বের সব শান্তিকামী মানুষের জন্য একটি উপযুক্ত আয়োজন। আমরা যদি বিশ্বের কোথাও শান্তির প্রচার করতে কিছু করতে পারি, তাহলে আমরা আমাদের সেবা প্রদান করতে পেরে খুশি হব। কোনো পূর্বশর্ত ছাড়াই শান্তির পক্ষে আমাদের অবস্থান।’

শান্তি ও সম্প্রীতি বজায় রাখা মানবজীবনের অপরিহার্য অনুষঙ্গ বলেও মনে করেন আবদুল হামিদ।

তিনি বলেন, ‘আমরা সবাই জানি শান্তি হলো সম্প্রীতি, বন্ধুত্ব এবং সংঘাতহীনতার একটি সর্বজনীন ধারণা। ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর মধ্যে সহিংসতা বা দ্বন্দ্ব থেকে মুক্তির নিশ্চয়তা দেয় শান্তি।’

৩০ লাখ প্রাণের বিনিময়ে ১৯৭১ সালের এই ডিসেম্বরে বিশ্ব মানচিত্রে স্বাধীন দেশ হিসেবে বাংলাদেশ আত্মপ্রকাশ করেছে জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘অতএব আমরা জনগণ হিসেবে সব মানুষের গভীর আকাঙ্ক্ষা হিসেবে শান্তিকে মূল্য দিতে শিখেছি।’

স্বাধীনতার মহানায়ক জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বর্ণাঢ্য জীবনের দিক উঠে আসে রাষ্ট্রপতির বক্তব্যে।

তিনি বলেন, ‘স্বাধীনতার পরে আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, যিনি শান্তির প্রবক্তা ছিলেন, তিনি একটি সংবিধান প্রবর্তন করেন, যা সব নাগরিকের মৌলিক মানবাধিকারের নিশ্চয়তা দেয়। আন্তর্জাতিক শান্তি, নিরাপত্তা এবং সংহতিকে সমর্থন দেয়।’

রাষ্ট্রপতি বলেন, “বঙ্গবন্ধু শান্তিতে অবদান রেখেছিলেন বলেই তার স্বীকৃতি হিসেবে ‘শান্তির প্রতীক’ হিসেবে তাকে ১৯৭৩ সালে জুলিও-কিউরি শান্তি পুরস্কারে ভূষিত করে ওয়ার্ল্ড পিস কাউন্সিল।”

এর মধ্য দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু বিশ্ববন্ধুতে পরিণত হন বলেও মন্তব্য করেন রাষ্ট্রপতি।

আরও পড়ুন:
‘গাড়ি দুইডা নদীতে, ভিক্ষা ছাড়া উপায় নাই’
ফেরি দুর্ঘটনা-ফ্লাইওভারে ফাটলে দায়ীদের বিচার দাবি
পাটুরিয়ায় ফেরি দুর্ঘটনায় দৌলতদিয়ায় ৩ কিমি যানজট
আমানত শাহকে উদ্ধারে রুস্তম

শেয়ার করুন

নভেম্বরে সড়কে ‘নিহত ৪১৩’

নভেম্বরে সড়কে ‘নিহত ৪১৩’

নভেম্বরে সড়কে সবচেয়ে বেশি প্রাণ গেছে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায়। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা

গত মাসে সড়কে মোট দুর্ঘটনাগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ছিল মোটরসাইকেল দুর্ঘটনা। ১৫৮টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ১৮৪ জন, যা মোট নিহতের ৪৪ দশমিক ৫৫ শতাংশ। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার হার ৪১ দশমিক ৬৮ শতাংশ।

দেশে চলতি বছরের নভেম্বরে সড়ক দুর্ঘটনা ঘটেছে ৩৭৯টি। এতে প্রাণ গেছে ৪১৩ জনের, আহত ৫৩২ জন। সবচেয়ে বেশি মৃত্যু ঘটেছে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায়, ৪৪ দশমিক ৫৫ শতাংশ।

সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে মাসভিত্তিক প্রতিবেদনে শনিবার এসব তথ্য দেয় রোড সেফটি ফাউন্ডেশন। তাদের তথ্যসূত্র সাতটি জাতীয় দৈনিক, পাঁচটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল এবং ইলেকট্রনিক গণমাধ্যম।

রোড সেফটি ফাউন্ডেশন জানায়, সড়ক দুর্ঘটনায় নভেম্বরে যারা নিহত হয়েছেন তাদের মধ্যে নারী ৬৭ জন, শিশু ৫৮ জন। এ ছাড়া দুর্ঘটনায় ৯৬ জন পথচারী নিহত হয়েছেন।

১৫৮টি মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ১৮৪ জন, যা মোট নিহতের ৪৪ দশমিক ৫৫ শতাংশ। মোটরসাইকেল দুর্ঘটনার হার ৪১ দশমিক ৬৮ শতাংশ।

সড়ক দুর্ঘটনার ভয়াবহ চিত্র নিয়ে কথা বলতে গিয়ে রাজধানীতে নিরাপদ সড়কসহ নানা দাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের প্রসঙ্গটিও টেনে আনেন রোড সেফটি ফাউন্ডেশন নির্বাহী পরিচালক সাইদুর রহমান।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘ছাত্ররা যে নিরাপদ সড়ক আন্দোলন করছে, এটা তো ছাত্রদের করার কথা না। এটার দায়িত্ব তো রাষ্ট্রের এবং সরকারের। ছাত্ররা তো বাধ্য হচ্ছে নিরাপদ সড়ক আন্দোলন করতে। এই আন্দোলনের প্রতি আমাদের নৈতিক সমর্থন আছে এবং সবারই সমর্থন দেয়া উচিত।

‘তবে আন্দোলনের নামে অরাজকতা হোক, গাড়ি ভাঙচুর-অগ্নি সংযোগ হোক সেটা আমরা চাই না। আমরা চাই মানুষ নিরাপদে সড়কে যাতায়াত করুক। পরিবহন শ্রমিকদের পেশাগত উন্নতির মাধ্যমে দায়িত্ব পালন করুক। পরিবহন মালিকরা দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে সচেতন হোক। সবশেষে মানুষ সচেতন হোক- এটাই আমাদের প্রত্যাশা।’

রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নভেম্বর মাসে সাতটি নৌ-দুর্ঘটনায় ৯ জন নিহত হন, নিখোঁজ ৫ জন। আর রেলপথে ১১টি রেলপথ দুর্ঘটনায় ১৩ জন নিহত হয়েছেন, আহত ২ জন।

দুর্ঘটনায় যানবাহনভিত্তিক নিহতের পরিসংখ্যানে দেখা যায়, মোটরসাইকেলচালক ও আরোহী ১৮৪ জন, বাসযাত্রী ২৩ জন, ট্রাক-পিকআপ-কাভার্ডভ্যান-ট্রাক্টর-ট্রলি যাত্রী ১২ জন, মাইক্রোবাস-প্রাইভেট কার-অ্যাম্বুলেন্স-জিপ যাত্রী ৯ জন, থ্রি-হুইলার যাত্রী (ইজিবাইক-সিএনজি-অটোরিকশা-অটোভ্যান-মিশুক-টেম্পু-লেগুনা) ৬৬ জন।

এ ছাড়া স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহনের যাত্রী (নসিমন-ভটভটি-আলমসাধু-বোরাক-মাহিন্দ্র-টমটম) ১৭ জন এবং প্যাডেল রিকশা-রিকশাভ্যান-বাইসাইকেল আরোহী ৬ জন নিহত হয়েছেন।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, দুর্ঘটনাগুলোর মধ্যে ১৫৬টি জাতীয় মহাসড়কে, ১৩১টি আঞ্চলিক সড়কে, ৫৩টি গ্রামীণ সড়কে, ৩৫টি শহরের সড়কে এবং অন্যান্য স্থানে ৪টি দুর্ঘটনা ঘটেছে।

দুর্ঘটনাগুলোর ৮৯টি মুখোমুখি সংঘর্ষ, ১৩৩টি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে, ৯১টি পথচারীকে চাপা বা ধাক্কা দেয়া, ৫৯টি যানবাহনের পেছনে আঘাত করা এবং ৭টি অন্যান্য কারণে ঘটেছে।

যানবাহন অনুযায়ী দুর্ঘটনার হার

রোড সেফটি ফাউন্ডেশনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, দুর্ঘটনায় সম্পৃক্ত যানবাহনের মধ্যে ট্রাক-কাভার্ডভ্যান-পিকআপ ২১ দশমিক ৪২ শতাংশ, ট্রাক্টর-ট্রলি-লরি-ড্রাম ট্রাক ৩ দশমিক ৮৪ শতাংশ, মাইক্রোবাস-প্রাইভেট কার-অ্যাম্বুলেন্স-জিপ ৫ দশমিক ৩১ শতাংশ, যাত্রীবাহী বাস ১১ দশমিক ৫৩ শতাংশ, মোটরসাইকেল ৩০ দশমিক ৫৮ শতাংশ, থ্রি-হুইলার ১৯ দশমিক ৯৬ শতাংশ, স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহন ৪ দশমিক ৩৯ শতাংশ এবং প্যাডেল রিকশা-রিকশাভ্যান-বাইসাইকেল ১ দশমিক ৯৩ শতাংশ।

দুর্ঘটনায় সম্পৃক্ত যানবাহনের সংখ্যা

সংস্থাটি বলছে, দুর্ঘটনায় সম্পৃক্ত যানবাহনের সংখ্যা ৫৪৬টি। এর মধ্যে ট্রাক ৭৮, বাস ৬৩, কাভার্ডভ্যান ১২, পিকআপ ২৭, ট্রলি ৮, লরি ৩, ট্রাক্টর ৬, মাইক্রোবাস ১৩, প্রাইভেট কার ১১, অ্যাম্বুলেন্স ৩, জিপ ২, পুলিশ পিকআপ ২, ড্রাম ট্রাক ৪, মোটরসাইকেল ১৬৭, থ্রি-হুইলার ১০৯, স্থানীয়ভাবে তৈরি যানবাহন ২২ এবং প্যাডেল রিকশা-রিকশাভ্যান-বাইসাইকেল ১৬টি।

ঢাকা বিভাগে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটেছে। ৮৩টি দুর্ঘটনায় নিহত ১০৪ জন। সবচেয়ে কম বরিশাল বিভাগে; ২২টি দুর্ঘটনায় নিহত ২৪ জন। একক জেলা হিসেবে চট্টগ্রামে সবচেয়ে বেশি দুর্ঘটনা ও প্রাণহানি ঘটেছে। ২১টি দুর্ঘটনায় ২৯ জন নিহত। সবচেয়ে কম লালমনিরহাট জেলায়। দুটি দুর্ঘটনা ঘটলেও কেউ হতাহত হয়নি। ঢাকায় ১৪টি দুর্ঘটনায় ১৬ জন নিহত হয়েছে।

দেশে সড়ক দুর্ঘটনার কারণ

রোড সেফটি ফাউন্ডেশন দুর্ঘটনার প্রধান কারণ হিসেবে বলছে, ত্রুটিপূর্ণ যানবাহন, বেপরোয়া গতি, চালকদের বেপরোয়া মানসিকতা, অদক্ষতা ও শারীরিক-মানসিক অসুস্থতা, বেতন ও কর্মঘণ্টা নির্দিষ্ট না থাকা, মহাসড়কে স্বল্পগতির যানবাহন চলাচল, তরুণ ও যুবদের বেপরোয়া মোটরসাইকেল চালানো, জনসাধারণের মধ্যে ট্রাফিক আইন না জানা ও না মানার প্রবণতা, দুর্বল ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা, বিআরটিএর সক্ষমতার ঘাটতি, গণপরিবহন খাতে চাঁদাবাজি।

সুপারিশ

সড়ক দুর্ঘটনা কমাতে বেশ কিছু সুপারিশ তুলে ধরেছে রোড সেফটি ফাউন্ডেশন। এগুলোর মধ্যে রয়েছে: দক্ষ চালক তৈরির উদ্যোগ বৃদ্ধি করতে হবে, চালকের বেতন ও কর্মঘণ্ট নির্দিষ্ট করতে হবে, বিআরটিএর সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে, পরিবহনের মালিক-শ্রমিক, যাত্রী ও পথচারীদের প্রতি ট্রাফিক আইনের বাধাহীন প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে, মহাসড়কে স্বল্পগতির যানবাহন চলাচল বন্ধ করে এগুলোর জন্য আলাদা পার্শ্বরাস্তা (সার্ভিস লেন) তৈরি করতে হবে, পর্যায়ক্রমে সব মহাসড়কে রোড ডিভাইডার নির্মাণ করতে হবে, গণপরিবহনে চাঁদাবাজি বন্ধ করতে হবে, রেল ও নৌপথ সংস্কার ও সম্প্রসারণ করে সড়কপথের ওপর চাপ কমাতে হবে, টেকসই পরিবহন কৌশল প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন করতে হবে এবং সর্বোপরি ‘সড়ক পরিবহন আইন, ২০১৮’ বাধাহীনভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে।

আরও পড়ুন:
‘গাড়ি দুইডা নদীতে, ভিক্ষা ছাড়া উপায় নাই’
ফেরি দুর্ঘটনা-ফ্লাইওভারে ফাটলে দায়ীদের বিচার দাবি
পাটুরিয়ায় ফেরি দুর্ঘটনায় দৌলতদিয়ায় ৩ কিমি যানজট
আমানত শাহকে উদ্ধারে রুস্তম

শেয়ার করুন

ওয়াসার ‘শতভাগ সুপেয়’ পানি ফুটিয়ে খেতে বললেন এমডি

ওয়াসার ‘শতভাগ সুপেয়’ পানি ফুটিয়ে খেতে বললেন এমডি

প্রায় ৩ মাস ধরে ওয়াসার পানিতে ময়লা আসার অভিযোগ করেন রাজধানীর শেখেরটেক এলাকার বাসিন্দা মোহাম্মদ ওসমান। ছবি: নিউজবাংলা

আগের অবস্থান থেকে সরে এসে ওয়াসার এমডি তাকসিম এ খান বলেন, ‘পানি ফুটিয়ে খাওয়া আপনার চয়েজ। কারণ আমরা ১০০ শতাংশ গ্যারান্টি দিতে পারব না।’

ওয়াসার পানিকে ‌‘শতভাগ সুপেয়’ বলা প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) তাকসিম এ খান তার আগের অবস্থান থেকে সরে এসেছেন।

সংস্থাটির পানি এখনও শতভাগ সুপেয় হয়নি জানিয়ে তা ফুটিয়ে পান করার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

দুর্নীতিবিরোধী সংস্থা টিআইবির ‌‘ঢাকা ওয়াসা: সুশাসনের চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদনে জানানো হয়েছিল, নিম্নমানের কারণে ঢাকা মহানগরীতে ওয়াসার ৯১ শতাংশ সেবাগ্রহীতা পানি ফুটিয়ে পান করেন।

২০১৯ সালের ১৭ এপ্রিল প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল, পানি ফোটানোর কারণে ঢাকা মহানগরীতে গ্রাহকরা যে পরিমাণ জ্বালানি খরচ করেছেন, তার অর্থমূল্য প্রায় ৩৩২ কোটি ৩৭ লাখ ৫৮ হাজার ৬২০ টাকা।

টিআইবির এ প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে ওয়াসার এমডি তাকসিম এ খান সে সময় বলেছিলেন, ওয়াসার পানি শতভাগ সুপেয়।

ওই বক্তব্যের আড়াই বছর পর ঢাকা ওয়াসার কর্মকাণ্ড নিয়ে শনিবার সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন এমডি।

এ অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাকা ওয়াসার পরিচালক (উন্নয়ন) আবুল কাশেম, ব্যবস্থাপক (কমার্শিয়াল) উত্তম কুমার, সচিব প্রকৌশলী শারমিন হক, এভারেস্টজয়ী নিশাত মজুমদার।

ঢাকা ওয়াসার কনফারেন্স সেন্টারের এ মতবিনিময় সভায় তাকসিম এ খান বলেন, রাজধানীর ৯০ থেকে ৯৫ শতাংশ জায়গায় ওয়াসার পানি বিশুদ্ধ। সেটি পরিসংখ্যানে উঠে এসেছে।

তিনি বলেন, ‘…সমস্যা হচ্ছে পাইপ লাইনে, পাইপ লাইনে যদি না ভাঙা থাকে তাহলে পানি ফোটানোর প্রয়োজন হয় না। এ ছাড়া সমস্যা আপনাদের পানি রিজার্ভের স্থানে। পানি রিজার্ভ করে রাখা স্থান পরিষ্কার রাখলে ৯০ থেকে ৯৫ শতাংশ পানি না ফুটিয়ে পান করতে পারে।’

পানি ফুটিয়ে পানের পরামর্শ দিয়ে ওয়াসার এমডি বলেন, ‘আমি জানি না কোন এলাকা বা স্থান এবং সময়ে ১০ শতাংশ খারাপ পানির অবস্থায় রয়েছে। সে ক্ষেত্রে আমাদের পরামর্শ, পানি ফুটিয়ে খান।’

ওয়াসা শতভাগ পানি ফোটানোর ব্যবস্থা করলে খরচ অনেক বেড়ে যাবে বলে উল্লেখ করেন তাকসিম।

তিনি বলেন, ‘৫ থেকে ১০ শতাংশ আপনারা পান করার জন্য ফুটিয়ে ব্যবহার করেন। বাকি অন্য পানি ফুটিয়ে ছাড়া এমনিতেই ব্যবহার করছেন। ওয়াসা যদি ১০০ শতাংশ পানি ফুটিয়ে দেয়, তাহলে পানির দাম ৯ গুণ বাড়বে।’

আগের অবস্থান থেকে সরে এসে ওয়াসার এমডি বলেন, ‘পানি ফুটিয়ে খাওয়া আপনার চয়েজ। কারণ আমরা ১০০ শতাংশ গ্যারান্টি দিতে পারব না।

‘পানি যেখানে রিজার্ভ করা হয়, রিজাভ স্থানগুলো থেকেও পানিতে জীবাণু ছড়ায়। ট্যাংকগুলো তিন মাস পরপর পরিষ্কার করতে হবে।’

শীতে পানি সংকট দেখা দিলেও সমস্যা হবে না জানিয়ে তাকসিম বলেন, ‘প্রতি বছর শীতে কিছু না কিছু স্থানে পানির সংকট দেখা দেয়, তবে এবার আমরা আগে থেকেই প্রস্তুত রয়েছি।

‘৯০০ ডিপ টিউবওয়েল নতুন করে বসানো হয়ছে। এটা এখন বন্ধ থাকে। শীতে পানি সংকট দেখা দিলে এই টিউবওয়েল ব্যবহার করা হবে।’

আরও পড়ুন:
‘গাড়ি দুইডা নদীতে, ভিক্ষা ছাড়া উপায় নাই’
ফেরি দুর্ঘটনা-ফ্লাইওভারে ফাটলে দায়ীদের বিচার দাবি
পাটুরিয়ায় ফেরি দুর্ঘটনায় দৌলতদিয়ায় ৩ কিমি যানজট
আমানত শাহকে উদ্ধারে রুস্তম

শেয়ার করুন

এলডিসির সুবিধা অব্যাহত রাখতে জাতিসংঘকে বাংলাদেশের আহ্বান

এলডিসির সুবিধা অব্যাহত রাখতে জাতিসংঘকে বাংলাদেশের আহ্বান

জাতিসংঘের প্রতিনিধিদের সঙ্গে মন্ত্রিপরিষদ সচিবের বৈঠক। ছবি: সৌজন্যে

এলডিসি ক্যাটাগরি থেকে বাংলাদেশের উত্তরণ সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ে জাতিসংঘের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় ও বৈঠক করছে বাংলাদেশের প্রতিনিধি দল।

আন্তর্জাতিক সহায়তা ব্যবস্থাগুলোতে এলডিসিভুক্ত দেশগুলো যেসব সুবিধা পায়, তা (এলডিসি) থেকে উত্তরণের পরও যেন অব্যহত থাকে— তা নিশ্চিত করার ওপর জাতিসংঘে গুরুত্ব দিয়েছে বাংলাদেশ।

নিউইয়র্কে অবস্থিত জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে শনিবার এ তথ্য জানায়।

এলডিসি ক্যাটাগরি থেকে বাংলাদেশের উত্তরণ সম্পর্কিত বিভিন্ন বিষয়ে জাতিসংঘের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় ও বৈঠক করছে বাংলাদেশের প্রতিনিধি দল।

দুই সদস্যের এই প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম।

নিউ ইয়র্কে সরকারি সফরকালে মন্ত্রিপরিষদ সচিব জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের সভাপতি আব্দুল্লাহ সহিদ, জাতিসংঘ অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদের সভাপতি কোলেন ভিক্সেন কিলাপাইল, স্বল্পোন্নত দেশ, ভূ-বেষ্টিত উন্নয়নশীল দেশ এবং উন্নয়নশীল ক্ষুদ্র দ্বীপ রাষ্ট্রসমূহের উচ্চ প্রতিনিধি ও আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল কোর্টিনে র‌্যাট্রে, জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসির সচিব রোন্যাল্ড ম্যোলেরাসের নেতৃত্বাধীন একটি বিশেষজ্ঞ দলের সঙ্গে আলাদা আলাদা করেন।

গত ২৪ নভেম্বর জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে সর্বসম্মতিক্রমে এলডিসি ক্যাটাগরি থেকে বাংলাদেশের উত্তরণের রেজুলেশন গৃহীত হওয়ার পরপরই মন্ত্রিপরিষদ সচিবের এই সফর বিশেষ গুরুত্ব বহন করে বলে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।

বৈঠকগুলোতে কাতারের দোহায় ২০২২ সালের জানুয়ারি মাসে অনুষ্ঠেয় ৫ম এলডিসি সম্মেলনে গ্রহণের জন্য ‘এলডিসির দেশগুলোর পরবর্তী ১০ বছরের কর্মপরিকল্পনা’ শীর্ষক ডকুমেন্টটির নেগোসিয়েশনে বাংলাদেশের নেতৃত্বদানের বিষয়টি উল্লেখ করে মন্ত্রিপরিষদ সচিব উত্তরণ পরবর্তী চ্যালেঞ্জগুলো তুলে ধরেন।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, অন্যদিকে জাতিসংঘের প্রতিনিধিরা মন্ত্রিপরিষদ সচিবকে জাতিসংঘের নতুন উদ্যোগ যেমন ‘সাসটেইন্যাবল গ্রাজুয়েশন সাপোর্ট ফ্যাসিলিটি’ এবং ‘এনহ্যান্সড গ্রাজুয়েশন মনিটরিং’ সম্পর্কে অবহিত করেন; যা উত্তরিত দেশগুলোর যে কোনো সংকটে বা কাঙ্খিত অবস্থান থেকে পিছিয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিলে ভূমিকা রাখবে।

দোহা কর্ম-পরিকল্পনার নেগোসিয়েশনে নেতৃত্বদানের জন্য জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা এবং কানাডার স্থায়ী প্রতিনিধি রবার্ট রে-এর প্রশংসা করেন জাতিসংঘের প্রতিনিধিরা।

আরও পড়ুন:
‘গাড়ি দুইডা নদীতে, ভিক্ষা ছাড়া উপায় নাই’
ফেরি দুর্ঘটনা-ফ্লাইওভারে ফাটলে দায়ীদের বিচার দাবি
পাটুরিয়ায় ফেরি দুর্ঘটনায় দৌলতদিয়ায় ৩ কিমি যানজট
আমানত শাহকে উদ্ধারে রুস্তম

শেয়ার করুন

শান্তি প্রতিষ্ঠার দায় সবার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

শান্তি প্রতিষ্ঠার দায় সবার: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর মেয়ে, আমাদের প্রধানমন্ত্রীও শান্তির জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি দেশে ও বিদেশে শান্তিপূর্ণভাবে বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করছেন। এই যে শান্তির প্রতি তারও অগাধ বিশ্বাস, এটি আমরা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে চাই।’

শান্তি প্রতিষ্ঠায় সবাইকে এগিয়ে আসতে হয়। শান্তি সরকারের একার পক্ষে প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

শনিবার ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে ‘বিশ্ব শান্তি সম্মেলন’ প্যানেল আলোচনা শুরুর অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বিকেল সাড়ে ৪টায় রাজধানীর হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে এর উদ্বোধন করবেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। সম্মেলনে ৫০টি দেশের ১০০ জন প্রতিনিধি অংশ নেবেন।

এ সম্মেলনে বিভিন্ন দেশের ৬০ জন প্রতিনিধি ভার্চুয়ালি অংশ নেবেন। আর বাকি ৪০ জন সশরীরে অংশ নেবেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বক্তব্যের মধ্য দিয়ে রোববার বিকেলে এ সম্মেলন শেষ হবে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর মেয়ে, আমাদের প্রধানমন্ত্রীও শান্তির জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। তিনি দেশে ও বিদেশে শান্তিপূর্ণভাবে বিভিন্ন সমস্যার সমাধান করছেন। এই যে শান্তির প্রতি তারও অগাধ বিশ্বাস, এটি আমরা বিশ্বে ছড়িয়ে দিতে চাই।

‘জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী যে শান্তির সংস্কৃতির ধারণা দিয়েছেন, সম্মেলন থেকে আমরা পৃথিবীতে শান্তির বার্তা দিতে চাই। আমরা চাই, এই বার্তা পৃথিবীতে ছড়িয়ে পড়ুক। পৃথিবীতে টেকসই শান্তির জন্য প্রয়োজন একে-অপরের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ, ভালোবাসা, সহনশীলতা- এগুলো আমরা তুলে ধরব।’

আরও পড়ুন:
‘গাড়ি দুইডা নদীতে, ভিক্ষা ছাড়া উপায় নাই’
ফেরি দুর্ঘটনা-ফ্লাইওভারে ফাটলে দায়ীদের বিচার দাবি
পাটুরিয়ায় ফেরি দুর্ঘটনায় দৌলতদিয়ায় ৩ কিমি যানজট
আমানত শাহকে উদ্ধারে রুস্তম

শেয়ার করুন