× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Double ferry to Paturia
hear-news
player
google_news print-icon

১৭ ট্রাক নিয়ে হেলে পড়েছে ফেরি

১৭-ট্রাক-নিয়ে-হেলে-পড়েছে-ফেরি
মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ঘাটে ডুবে যায় এই রো রো ফেরিটি। ছবি: সংগৃহীত
বিআইডব্লিউটিসি আরিচা কার্যালয়ের ডিজিএম জিল্লুর রহমান বলেন, দৌলতদিয়া ঘাট থেকে যানবাহন লোড করে পাটুরিয়া ঘাটের ৫ নম্বর ফেরিঘাটে এটি নোঙর করে। ফেরি থেকে দু-তিনটি যানবাহন নামার পরপরই এটি এক পাশে হেলে পড়ে।

মানিকগঞ্জের পাটুরিয়ার ৫ নম্বর ফেরিঘাটে আমানত শাহ নামে একটি রো রো ফেরি হেলে পড়েছে।

বুধবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয়ের ডিজিএম জিল্লুর রহমান সকালে জানান, দৌলতদিয়া ঘাট থেকে যানবাহন লোড করে পাটুরিয়ার ৫ নম্বর ঘাটে ফেরিটি নোঙর করে। ফেরি থেকে দু-তিনটি যানবাহন নামার পরপরই এটি কাত হয়ে ডুবে যায়।

পরে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ তথ্য কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম খান জানিয়েছেন, ফেরিটি কাত হয়ে হেলে পড়েছে, ডুবে যায়নি।

ফেরিটি উদ্ধারে কাজ শুরু করেছে ফায়ার সার্ভিস।

১৭ ট্রাক নিয়ে হেলে পড়েছে ফেরি

এ ঘটনায় ফেরির আরোহীরা কেউ নিখোঁজ আছেন কি না তা তিনি নিশ্চিত করেননি। তিনি জানান, হেলে পড়ার সময় ফেরিতে ১৭টি ট্রাক ছিল।

এই দুর্ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী শফিকুল ইসলাম জানান, তিনি খুলনা থেকে ঢাকায় ফিরছিলেন। তিনি যেই ফেরিতে ছিলেন, সেটি থেকে কিছু দূরে ছিল শাহ আমানত ফেরিটি। মাঝনদীতে পৌঁছালে পদ্মার স্রোত বেড়ে যায়। সে সময় তিনি দেখেন পেছনের ওই ফেরিটিতে পানি উঠছে। ঘাটের কাছাকাছি পৌঁছাতেই কাত হয়ে পানিতে আংশিক তলিয়ে যায়।

দৌলতদিয়া ঘাটের নৌপুলিশ ফাঁড়ির পরিদর্শক সৈয়দ জাকির হোসেন নিউজবাংলাকে জানান, ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিদল ফেরির ডুবে যাওয়া অংশে এখনও কাউকে আটকে থাকা অবস্থায় পায়নি। ফেরিতে কোনো ব্যক্তিগত গাড়ি ছিল না। তবে তিনটি মোটরসাইকেল ভাসমান অবস্থায় পাওয়া গেছে। সেগুলোর চালক ঘাটে অবস্থান করছেন।

প্রতিবেদন তৈরিতে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করেছেন রাজবাড়ী থেকে রবিউল আউয়াল, সাভার থেকে ইমতিয়াজ উল ইসলাম ও ঢাকা থেকে পিয়াস বিশ্বাস

আরও পড়ুন:
পন্টুন ভেঙে ফেরি চলাচল বন্ধ
ঘাটে ড্রেজিং, ভোগান্তি কমছে না দৌলতদিয়ায়
পাটুরিয়ায় পারের অপেক্ষায় হাজারের বেশি গাড়ি
চালুর ৭ দিনের মাথায় শিমুলিয়া-বাংলাবাজারে ফের বন্ধ ফেরি
পদ্মার দুই ঘাটেই যানবাহনের সারি

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Be careful not to mislead people with religion

‘ধর্ম দিয়ে কেউ যেন জনগণকে বিভ্রান্ত করতে না পারে, সজাগ থাকুন’

‘ধর্ম দিয়ে কেউ যেন জনগণকে বিভ্রান্ত করতে না পারে, সজাগ থাকুন’ বঙ্গভবনে হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজনের সঙ্গে মতবিনিময় করেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। ছবি: পিআইডি
আবদুল হামিদ বলেন, ‘দুর্গাপূজায় আমরা অবশ্যই আনন্দ উৎসব করব, কিন্তু মনে রাখতে হবে যে আমাদের প্রতিবেশী, বন্ধুবান্ধব ও আত্মীয়স্বজন তারাও যেন এই আনন্দ থেকে বঞ্চিত না হয়।’

যাতে কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠী তাদের হীন স্বার্থে ধর্মকে ব্যবহার করে জনগণকে বিভ্রান্ত করতে না পারে সে দিকে সবাইকে সজাগ থাকার আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

বলেছেন, ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বাঙালির চিরকালীন ঐতিহ্য। এখানে মেজরিটি বা মাইনরিটির কোনো স্থান নেই।’

বুধবার সন্ধ্যায় শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে বঙ্গভবনে হিন্দু ধর্মাবলম্বী বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় ও সৌজন্য সাক্ষাতে এ কথা বলেন।

দেশের সামগ্রিক অগ্রযাত্রায় রাষ্ট্রপ্রধান সম্মিলিতভাবে এ ঐতিহ্যকে এগিয়ে নিতে সকলকে এক যোগে কাজ করারও তাগিদ দেন।

বাংলাদেশসহ বিশ্বের হিন্দু ধর্মাবলম্বী সকলকে বিজয়ার শুভেচ্ছা জানিয়ে আবদুল হামিদ বলেন, ‘দুর্গাপূজায় আমরা অবশ্যই আনন্দ উৎসব করব, কিন্তু মনে রাখতে হবে যে আমাদের প্রতিবেশী, বন্ধুবান্ধব ও আত্মীয়স্বজন তারাও যেন এই আনন্দ থেকে বঞ্চিত না হয়।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের সজাগ থাকতে হবে, যাতে কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠী তাদের হীন স্বার্থে ধর্মকে ব্যবহার করে জনগণকে বিভ্রান্ত করতে না পারে।’

রাষ্ট্রপতি গত ২৫ সেপ্টেম্বর পঞ্চগড় জেলার করতোয়া নদীতে নৌকাডুবিতে ৭০ জন পুণ্যার্থীর অকাল প্রয়াণে দুঃখ ভারাক্রান্ত হৃদয়ে গভীর শোক প্রকাশ করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতিও গভীর সমবেদনা জানান। রাষ্ট্রপতি আহতদের আশু আরোগ্য কামনা করেন।

সারা বিশ্বে বিরাজমান করোনার ছোবল ও রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ বিশ্বব্যাপী অস্থিরতা ও সংঘাতময় পরিস্থিতির জন্ম দিয়েছে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি হামিদ বলেন, ‘বিশ্ববাসী চরম অনিশ্চয়তার মধ্য দিয়ে দিনাতিপাত করছে। বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রতিনিয়ত মন্দার ধাক্কা লাগছে।’

তিনি বিশ্বাস করেন ‘এ অবস্থা থেকে উত্তরণে পরমত সহিষ্ণুতা, পারস্পরিক আস্থা ও বিশ্বাস আর সহযোগিতার কোনো বিকল্প নেই।’

গতকাল অনাকাঙ্খিত বিদ্যুৎ বিভ্রাটের প্রসঙ্গ টেনে রাষ্ট্রপতি বলেন, এজন্য কিছুটা বিঘ্ন ঘটেছে।

তবে তিনি আশা প্রকাশ করেন, সামনের দিনগুলোতে ধর্মীয় সকল উৎসব আরও সুন্দর ও জাঁকজমকপূর্ণভাবে পালিত হবে এবং ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সবার মধ্যে সম্প্রীতি ও সৌহার্দ্যরে বন্ধন আরও সুসংহত হবে।

অনুষ্ঠানে ধর্ম প্রতিমন্ত্রী মো. ফরিদুল হক খান, ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের সিনিয়র ভাইস-চেয়ারম্যান মনোরঞ্জন শীল গোপাল, হিন্দুধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ট্রাস্টি অধ্যাপক ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, হিন্দুধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্টের ভাইস-চেয়ারম্যান সুব্রত পাল, বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি জে এল ভৌমিক, রামকৃষ্ণ মঠ ও মিশনের অধ্যক্ষ স্বামী হরিপ্রেমানন্দ মহারাজ, ঢাকা মহানগর সার্বজনীন পূজা কমিটির সভাপতি মনিন্দ্র কুমার নাথ অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন।

আরও পড়ুন:
মিঠামইনে নির্মাণাধীন সেনানিবাস পরিদর্শনে রাষ্ট্রপতি
হাওরের উন্নয়ন নিয়ে বিভ্রান্তিমূলক তথ্য প্রচার হচ্ছে: রাষ্ট্রপতি
৪ দিনের সফরে কিশোরগঞ্জে রাষ্ট্রপতি
চার দিনের সফরে কিশোরগঞ্জ যাচ্ছেন রাষ্ট্রপতি
সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি যেন বিনষ্ট না হয়: রাষ্ট্রপতি

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Singapore won Bangladesh by scoring 3 goals

৩ গোল দিল সিঙ্গাপুর, জিতল বাংলাদেশ

৩ গোল দিল সিঙ্গাপুর, জিতল বাংলাদেশ ম্যাচে দাপট দেখিয়ে জয় পেলেও গোল দিতে পারেনি বাংলাদেশ। ছবি: নিউজবাংলা
ম্যাচের শুরুটা দারুণ করে বাংলাদেশ। তবে অগোছালো ফুটবল খেলার কারণে গোলের সন্ধান তারা পায়নি। সিঙ্গাপুরের দুটি আত্মঘাতী গোলে ২-১ ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ।

এএফসি এশিয়ান কাপ অনূর্ধ্ব-১৭ বাছাইপর্বে সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে অন্যরকম এক জয় পেল বাংলাদেশ। ম্যাচে সবগুলো গোল দিয়েছে সিঙ্গাপুর, তাতেই জয় নিয়ে মাঠ ছেড়েছে লাল-সবুজের জার্সিধারীরা।

কমলাপুরে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ সিপাহী মোস্তফা কামাল স্টেডিয়ামে বুধবার নিজেদের প্রথম ম্যাচে সিঙ্গাপুরের বিপক্ষে ২-১ গোলে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। তবে ম্যাচে বাংলাদেশ একটি গোলও দিতে পারেনি। প্রতিপক্ষের জালে বল পাঠানোর পাশাপাশি সিঙ্গাপুরের যুবারা করেছেন দুটি আত্মঘাতী গোল।

৩ গোল দিল সিঙ্গাপুর, জিতল বাংলাদেশ
জয় উদযাপনে বাংলাদেশের যুবারা। ছবি: নিউজবাংলা

ম্যাচের শুরুটা দারুণ করে বাংলাদেশ। তৃতীয় মিনিটেই লিড নিতে পারত স্বাগতিকরা। ফরোয়ার্ড নাজিমুদ্দিনের দারুন একটি শটের বাধা হয়ে দাঁড়ায় সিঙ্গাপুরের গোলকিপার আইজ্যাক লি।

প্রথম সুযোগটি কাজে লাগাতে না পারলেও ম্যাচের ১০ মিনিটের মধ্যেই লিড পেয়ে যায় বাংলাদেশ। নাজিমুদ্দিন বক্সের ভেতরে মিরাজুলের দিকে বল ঠেলে দিলে তা বিপদমুক্ত করতে গিয়ে সিঙ্গাপুরের ডিফেন্ডার ব্রেয়ডেন গোহ উল্টো নিজেদের জালে বল পাঠিয়ে দেন। প্রতিপক্ষের দেয়া গোলেই ম্যাচের শুরুতে ১-০ ব্যবধানে এগিয়ে যায় বাংলাদেশ।

১৫তম মিনিটে আরও একটি সুযোগ মিস করে কোচ পল স্মলির লের শিষ্যরা। মিনিট পাঁচেক পর উল্টো প্রতিপক্ষের আক্রমণের মুখে পড়ে লাল সবুজের জার্সিধারীরা। অল্পের জন্য রক্ষা পায় সে যাত্রায়।

২৮ তম মিনিটে রাসুল রামলির পাস থেকে মুহাম্মদ শাইজোয়ানের দূরপাল্লার শটে হার মানেন বাংলাদেশ গোলকিপার সোহান। ফলে ১-১ সমতায় বিরতিতে যায় দুই দল।

দ্বিতীয়ার্ধে আক্রমণের ধার বাড়ায় বাংলাদেশ। একের পর এক আক্রমণে কোণঠাসা করে রাখে প্রতিপক্ষকে। তবে অগোছালো ফুটবল খেলার কারণে গোলের সন্ধান তারা পায়নি।

যোগ করা সময়ের শেষের দিকে জয়সূচক গোল আসে সেই সিঙ্গাপুরের খেলোয়াড়দের মাধ্যমেই। রাতুলের লম্বা থ্রোইন ক্লিয়ার করতে হেড করেছিলেন সিঙ্গাপুরের এক খেলোয়াড়। কিন্তু তার ব্যাক হেড গোলকিপার আইজ্যাক লির ধরলেও হাত ফসকে যায়। সিঙ্গাপুরের দুটি আত্মঘাতী গোলে ২-১ ব্যবধানে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে বাংলাদেশ।

আগামী শুক্রবার ভুটানের বিপক্ষে লড়বে বাংলাদেশ।

আরও পড়ুন:
২০২৬ বিশ্বকাপ বাছাইপর্বের কাঠামো চূড়ান্ত করেছে এএফসি
তৃতীয় ম্যাচ জিতে আশা বাঁচিয়ে রাখল কিংস
এএফসি লাইসেন্স: নেপাল-ভুটান ৪টি, বাংলাদেশ ২টি
এএফসি কাপের দলে উচ্ছ্বাস ও জুলকারনাইন
লাল কার্ডই কপাল পুড়িয়েছে দাবি কিংস অধিনায়কের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Toab Khan was a memorial at Batighar Kulkhani

তোয়াব খান ছিলেন বাতিঘর, কুলখানিতে স্মৃতিচারণ

তোয়াব খান ছিলেন বাতিঘর, কুলখানিতে স্মৃতিচারণ বর্ষীয়ান সাংবাদিক তোয়াব খানের কুলখানি। ছবি: নিউজবাংলা
অভিনেতা তারিক আনাম খান বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি গর্ব অনুভব করি যে এরকম একটি পরিবারে জন্ম নিয়েছি। তোয়াব খানের মতো মানুষের সান্নিধ্য পেয়েছি। এই পরিবার আমাকে কূপমণ্ডুকতা শেখায়নি, বরং প্রগতিশীলতা, আধুনিকতার দিকে ধাবিত করেছে। পরিবারের কিছু মানুষ থাকে যারা মহীরূহ হয়ে থাকেন, অনুপ্রেরণা দেন। তিনি তেমনই একজন মানুষ ছিলেন, যাকে অনুসরণ করা যায়।’

একুশে পদকপ্রাপ্ত বর্ষীয়ান সাংবাদিক, নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকম ও দৈনিক বাংলার সম্পাদক তোয়াব খানের কুলখানি হয়েছে বুধবার বাদ আসর।

গুলশানে প্রয়াতের নিজ বাসভবন এষা গার্ডেনে এই কুলখানি হয়। স্মৃতিচারণের আগে তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া মাহফিল হয়।

কুলখানিতে পরিবারের সদস্য এবং সাবেক ও বর্তমান সহকর্মীরা তার সঙ্গে নানা স্মৃতির কথা তুলে ধরে স্মৃতিচারণ করেন।

বলেন, চিন্তা ও চেতনায় প্রাগ্রসর মানুষ ছিলেন তোয়াব খান। সব বিষয়ে ছিলেন ঋদ্ধ। তার সঙ্গে যেকোনো বিষয় নিয়ে আলোচনা করলে সমৃদ্ধ হওয়া যেত। তিনি সাংবাদিকতাকে শুধু পেশা হিসেবে নয়, আবেগ ও ভালোবাসার সঙ্গী হিসেবে নিয়েছিলেন। তিনি আজীবন অনুপ্রেরণার উজ্জ্বল বাতিঘর হয়ে থাকবেন।

মিলাদ মাহফিলে অংশ নেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর চিফ অব জেনারেল স্টাফ লেফটেন্যান্ট জেনারেল আতাউল হাকিম সারওয়ার হাসান।

তোয়াব খানের ফুফাতো ভাই অভিনেতা তারিক আনাম খান বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমি গর্ব অনুভব করি যে এরকম একটি পরিবারে জন্ম নিয়েছি। তোয়াব খানের মতো মানুষের সান্নিধ্য পেয়েছি। এই পরিবার আমাকে কূপমণ্ডুকতা শেখায়নি, বরং প্রগতিশীলতা, আধুনিকতার দিকে ধাবিত করেছে। পরিবারের কিছু মানুষ থাকে যারা মহীরূহ হয়ে থাকেন, অনুপ্রেরণা দেন। তিনি তেমনই একজন মানুষ ছিলেন, যাকে অনুসরণ করা যায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘সাংবাদিকতাকে শুধুমাত্র পেশা হিসেবে নয়, আবেগ ও ভালোবাসার সঙ্গী হিসেবে নিয়েছিলেন তোয়াব খান, যার সঙ্গে যেকোনো বিষয় নিয়ে আলোচনা করলে সমৃদ্ধ হওয়া যেত। প্রায় সকল বিষয়েই তিনি পূর্ণ জ্ঞান রাখতেন। আমাদের পরিবারের জন্য তিনি সবসময় অনুপ্রেরণার উজ্জ্বল বাতিঘর হয়ে থাকবেন। তাকে নিয়ে সবসময় গর্ব অনুভব করব।’

তোয়াব খান নীতিগতভাবে কঠোর মানুষ ছিলেন জানিয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সাবেক অধ্যাপক মোবাশ্বেরা খানম বলেন, ‘তিনি সবসময় কাজের প্রতি সৎ ছিলেন। স্বল্পভাষী মানুষ ছিলেন। কখনোই মানুষের প্রতি তার দায়িত্ব কর্তব্য থেকে বিচ্যুত হননি। পরিবারের সদস্য হিসেবে এগুলো আমাদের কাছে শিক্ষা হিসেবে থাকবে। নিজেকে খুব কম প্রকাশ করতেন।’

তিনি বলেন, ‘একজন পরিপূর্ণ মানুষ হিসেবে তাকে অনুসরণ করতে পারা আমাদের জন্য সৌভাগ্যের বিষয় হবে। জীবনের শেষদিন পর্যন্ত কর্মস্পৃহা দেখিয়েছেন। চিন্তা-চেতনায় প্রাগ্রসর মানুষ ছিলেন। বর্তমানের নৈতিক অবক্ষয়ের সময়ে তিনি ছিলেন আলোকবর্তিকা।’

তোয়াব খানের ভাগনে আজকের পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক সেলিম খান বলেন, ‘ব্যক্তি তোয়াব খান ছিলেন নীতিনিষ্ঠ, নিয়মানুগ। জীবনে ও কর্মে ছিলেন অত্যন্ত সজ্জন এবং প্রায় অজাতশত্রু একজন মানুষ, যার চেতনায় সবার ওপরে ছিল বাংলাদেশ।

‘স্বাধীনতার চার মূলমন্ত্রে গভীরভাবে আস্থাশীল ছিলেন। সর্বোপরি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে তার ভাবনা ও ভালোবাসার গভীরতা প্রতিমুহূর্তে অনুভব করেছেন। এর কারণ তিনি বঙ্গবন্ধুকে খুব কাছ থেকে দেখা ও হারানোর অভিজ্ঞতা অর্জন করেছিলেন।’

কালের কণ্ঠের সিনিয়র সহকারী সম্পাদক আলী হাবিব বলেন, ‘তোয়াব খান আমার জীবনে একজন দীক্ষাদাতা পিতা হিসেবে অধিষ্ঠিত আছেন। আজীবন থাকবেন। যতদিন জীবিত থাকব, তাকে অনুসরণ করব।’

দৈনিক বাংলার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক শরিফুজ্জামান পিন্টু বলেন, ‘তোয়াব খানকে মূল্যায়ন করার মতো অভিজ্ঞতা বা যোগ্যতা কোনোটিই আমার নেই। দৈনিক বাংলায় উনি ছিলেন আমার বটবৃক্ষ। গত এক বছরে যা পেয়েছি তা আমার জীবনের শ্রেষ্ঠ পাওয়া।’

স্মরণসভা সঞ্চালনা করেন তোয়াব খানের ছোটভাই ওবায়দুল কবীর। এসময় মরহুমের নিকটাত্মীয় রুহুল আমিন বক্তব্য রাখেন।

স্মরণসভায় অংশ নেন নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোরের নির্বাহী সম্পাদক হাসান ইমাম রুবেল, ফোকাস বাংলার চেয়ারম্যান ইয়াসীন কবীর জয়, আজকের পত্রিকার ব্যবস্থাপনা সম্পাদক কামরুল হাসান প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
গণমাধ্যমের উন্নয়নে তোয়াব খানের অবদান অসামান্য: জি এম কাদের
সাংবাদিক তোয়াব খানের অন্তিম শয্যা সোমবার বনানী কবরস্থানে
তোয়াব খানের শূন্যতা অপূরণীয়: রাষ্ট্রপতি
বর্ষীয়ান সাংবাদিক তোয়াব খানের প্রয়াণে বিশিষ্টজনদের শোক
স্বীয় কর্মে স্মরণীয় থাকবেন তোয়াব খান: প্রধানমন্ত্রী

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Brunei Sultan is visiting Bangladesh for the first time

প্রথমবার বাংলাদেশে আসছেন ব্রুনাই সুলতান

প্রথমবার বাংলাদেশে আসছেন ব্রুনাই সুলতান ব্রুনাইয়ের সুলতান হাসানাল বলকিয়া। ছবি: সংগৃহীত
বিশ্বের অন্যতম ধনী রাষ্ট্রের সুলতানের সফরে বাংলাদেশ ও ব্রুনাইয়ের মধ্যে কয়েকটি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সইয়ের প্রস্তুতি চলছে। এ ছাড়া কয়েকটি সমঝোতা ও চুক্তি নিয়ে আলোচনা চলছে।

প্রথমবারের মতো বাংলাদেশ সফরে আসছেন ব্রুনাইয়ের সুলতান হাসানাল বলকিয়া।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের আমন্ত্রণে ১৪ অক্টোবর তিন দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে তিনি বাংলাদেশে আসছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গেও ব্রুনাইয়ের সুলতানের আনুষ্ঠানিক ও দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের কথা রয়েছে।

এসব বৈঠকে বাণিজ্য, বিনিয়োগ, কর্মসংস্থান দ্বিপক্ষীয় স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হবে।

বিশ্বের অন্যতম ধনী রাষ্ট্রের সুলতানের সফরে বাংলাদেশ ও ব্রুনাইয়ের মধ্যে কয়েকটি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক সইয়ের প্রস্তুতি চলছে। এ ছাড়া কয়েকটি সমঝোতা ও চুক্তি নিয়ে আলোচনা চলছে।

ব্রুনাইয়ের সঙ্গে জ্বালানি, শ্রমবাজার, সরাসরি বিমান চলাচল, প্রতিরক্ষা এবং নাবিকদের সনদের স্বীকৃতিবিষয়ক সমঝোতা সই হতে পারে। পাশাপাশি দ্বৈত কর পরিহার এবং বিনিয়োগসংক্রান্ত বিষয় নিয়ে কাজ চলছে।

ব্রুনাইয়ের সুলতানের বাংলাদেশ সফরকে ঘিরে এ পর্যন্ত চারটি সমঝোতা স্মারকের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। তবে তা আরও বাড়তে পারে বলে জানা গেছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, গত ৩১ আগস্ট দুই দেশের মধ্যে পররাষ্ট্রসচিব পর্যায়ের দ্বিতীয় বৈঠক ফরেন অফিস কনসালটেশন (এফওসি) অনুষ্ঠিত হয়। এ বৈঠকে জ্বালানি আমদানি, বাংলাদেশি শ্রমিক নিয়োগ, সরাসরি বিমান চলাচল এবং সংস্কৃতি খাতে সমঝোতা স্মারক সাক্ষরের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে।

ব্রুনাইয়ের সুলতানের সফরের বিষয়টি নিশ্চিত করে পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন নিউজবাংলাকে বলেন, ব্রুনাই থেকে ডিজেল আমদানি নিয়ে কাজ করছে বাংলাদেশ।

আরও জানা গেছে, সুলতানের এ সফরে দ্বিপক্ষীয় ব্যবসা-বাণিজ্য, কৃষি, প্রাণী ও মৎস্য, স্বাস্থ্য, যোগাযোগ, সংস্কৃতি, প্রতিরক্ষা সহযোগিতাসহ বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনা হবে।

দ্রুত রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন এবং আসিয়ান জোটের ডায়ালগ অংশীদার হতে ব্রুনাইয়ের সহযোগিতা চাওয়া হবে ঢাকার পক্ষ থেকে।

সূত্র জানায়, বাংলাদেশে ২০২০ সালে স্বাধীনতার সূবর্ণজয়ন্তী পালন ও মুজিব শতবর্ষ উদযাপনের সময়ে বিভিন্ন দেশের শীর্ষ নেতাকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। কিন্তু কোভিডের কারণে অনেক নেতারা আসতে পারেননি। এখন সেসব নেতাকে বাংলাদেশ সফরে আনার চেষ্টা করছে ঢাকা। ব্রুনাইয়ের সুলতানও ওই সময় আমন্ত্রিত অতিথি ছিলেন।

রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ ব্রুনাইয়ের সুলতানের সম্মানে রাষ্ট্রীয় নৈশভোজের আয়োজন করবেন। সুলতান হাসানাল বলকিয়া সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধের অমর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন। ব্রুনাইয়ের সুলতাদের সফরের বিস্তারিত কর্মসূচি এখন প্রণয়ন করা হচ্ছে।

হাসানাল বলকিয়ার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বৈঠকে জনশক্তি রপ্তানি, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ, জ্বালানি সংগ্রহের সম্ভাবনা, কৃষি ও মৎস্য খাতে সহযোগিতা এবং হালাল খাদ্য নিয়ে সহযোগিতার বিষয়ে আলোচনা হবে।

ব্রুনাইয়ে বর্তমানে ২৩ হাজার বাংলাদেশি বিভিন্ন খাতে কর্মরত আছেন। বাংলাদেশ থেকে আরও কর্মী নিয়োগের বিষয়ে আলোচনা হবে। বাংলাদেশ অনেক আগে ব্রুনাই থেকে জ্বালানি সংগ্রহ করেছে। তারপর তা নানা কারণে বন্ধ হয়ে যায়। এখন দেশটি থেকে জ্বালানি আমদানির বিষয়ে আলোচনা হবে। ব্রুনাইয়ের তেল-গ্যাসসহ জ্বালানির বিপুল রিজার্ভ রয়েছে।

সুলতানের সফরে রোহিঙ্গা ইস্যু গুরুত্বের সঙ্গে আলোচনা করবে বাংলাদেশ। ব্রুনাই আসিয়ানের গুরুত্বপূর্ণ সদস্য। বাংলাদেশ রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবাসনে আসিয়ানের জোরালো ভূমিকা চাইবে। এ সফরে বর্তমান মিয়ানমার পরিস্থিতির কারণে বাংলাদেশ যেসব সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে, সেটা তুলে ধরারও সুযোগ পাবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৯ সালের এপ্রিলে ব্রুনাই সফর করেন। ব্রুনাইয়ের সুলতানের এটা ফিরতি সফর।

আরও পড়ুন:
লিটনকে ওপেনিংয়ে খেলাবেন না সিডন্স
আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থার অনুমোদন পেয়েছে বিসিবি
রেলে আউটসোর্সিংয়ে নিয়োগের বিরোধিতায় অস্থায়ী শ্রমিকেরা
টস হেরে ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশ
জলবায়ু সমস্যার সমাধানে তরুণদের প্রশিক্ষণ বুটক্যাম্পের আয়োজন  

মন্তব্য

বাংলাদেশ
United Nations mourns the death of a Bangladeshi peacekeeper

বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীর মৃত্যুতে জাতিসংঘের শোক

বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীর মৃত্যুতে জাতিসংঘের শোক মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রে আইইডি বিস্ফোরণে নিহত বাংলাদেশের শান্তিরক্ষী সৈনিক জাহাঙ্গীর আলম, জসিম উদ্দিন ও শরিফ হোসেন (বাঁ থেকে)। ছবি: আইএসপিআর
শান্তিরক্ষী মিশনে দায়িত্বরত অবস্থায় প্রাণ হারানো জাহাঙ্গীর আলম, জসিম উদ্দিন ও শরিফ হোসেনের পরিবারের প্রতি আমাদের আন্তরিক সমবেদনা। আমরা চিকিৎসাধীন মেজর আশরাফুল হকের দ্রুত সুস্থতা কামনা করছি।

মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রে তিন বাংলাদেশি শান্তিরক্ষীর মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেছে জাতিসংঘ।

জাতিসংঘের শান্তিরক্ষায় দায়িত্বরত অবস্থায় প্রাণ হারান এসব সেনা সদস্যরা।

জাতিসংঘ সদর দপ্তরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

এতে বলা হয়, শান্তিরক্ষী মিশনে দায়িত্বরত অবস্থায় প্রাণ হারানো জাহাঙ্গীর আলম, জসিম উদ্দিন ও শরিফ হোসেনের পরিবারের প্রতি আমাদের আন্তরিক সমবেদনা। আমরা চিকিৎসাধীন মেজর আশরাফুল হকের দ্রুত সুস্থতা কামনা করছি।

‘জাতিসংঘ শান্তিরক্ষীরা দায়িত্ব পালনে যথেষ্ট ঝুঁকি নিয়ে থাকেন। যারা শান্তির সেবায় তাদের জীবন ও নিশ্চয়তাকে বাজি রাখে আমরা সবসময় তাদের সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করি এবং তারা সবার শান্তির স্বার্থেই আত্মত্যাগ করেন। আমরা সেই সব বীরকে সম্মান জানাই। কারণ তাদের জন্যই আমরা শান্তিতে ঘুমাতে পারি।’

এদিকে আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তরের (আইএসপিআর) এর দেয়া তথ্যে বলা হয়, ইমপ্রোভাইজড এক্সপ্লোসিভ ডিভাইস বা আইইডি বিস্ফোরণে মধ্য আফ্রিকান প্রজাতন্ত্রে নিয়োজিত জাতিসংঘের শান্তিরক্ষী মিশনে কর্মরত তিন বাংলাদেশি শান্তিরক্ষী নিহত হয়।

নিহত শান্তিরক্ষীরা হলেন সৈনিক জসিম উদ্দিন, তার বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ায়; নীলফামারীর সৈনিক জাহাঙ্গীর আলম এবং সিরাজগঞ্জের সৈনিক শরিফ হোসেন। এতে টহল কমান্ডার মেজর আশরাফুল হক আহত হন।

আইএসপিআর জানায়, সোমবার রাত ১টা ৩৫ মিনিটে আভিযানিক কার্যক্রম পরিচালনার সময় আইইডি বিস্ফোরণে তাদের গাড়িটি কয়েক ফুট দূরে ছিটকে পড়ে।

দুর্গম অঞ্চলে হওয়ার পরও দেশটির সরকার ও অন্য সেনাদের তৎপরতায় দ্রুততার সঙ্গে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে তিনজনকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

আরেক আহত শান্তিরক্ষী মেজর মো. আশরাফুল হক চিকিৎসাধীন রয়েছেন। বর্তমানে তার অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানানো হয়।

আরও পড়ুন:
নিউ ইয়র্কে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
‘গুম ও মানবাধিকার নিয়ে জাতিসংঘকে সবই জানানো হয়েছে’
ব্যাচেলেটের বক্তব্য নিয়ে ভুল তথ্য প্রচার হয়েছে: জাতিসংঘ
জাতিসংঘের মানবাধিকারপ্রধানের উদ্বেগের দেশের তালিকায় নেই বাংলাদেশ
‘জলবায়ু ঝুঁকি মোকাবিলায় উন্নত বিশ্বকে বাংলাদেশের পাশে দাঁড়াতে হবে’

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The eyes of the plane in the sky of Japan

জাপানের আকাশে চোখ বিমানের

জাপানের আকাশে চোখ বিমানের প্রতীকী ছবি
জাপানের নারিতায় ফ্লাইট চালু করতে কয়েক বছর ধরেই চেষ্টা চালিয়ে আসছিল বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস। ফ্লাইট শুরুর বিষয়ে জাপান সরকারের অনুমোদনও বেশ আগেই পায় রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠানটি।

কানাডার পর জাপানের আকাশে পাখা মেলার পরিকল্পনা সাজাচ্ছে রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী প্রতিষ্ঠান বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনস।

সম্প্রতি বিদেশি পর্যটকদের জন্য জাপানকে উন্মুক্ত ঘোষণা করায় এ পরিকল্পনা বাস্তবায়নের পথ খুলছে।

জাপানের নারিতায় ফ্লাইট চালু করতে কয়েক বছর ধরেই চেষ্টা চালিয়ে আসছিল বিমান। ফ্লাইট শুরুর বিষয়ে জাপান সরকারের অনুমোদনও বেশ আগেই পায় বিমান।

জাপানে ফ্লাইট পরিচালনার ক্ষেত্রে বিমানকে ফিফথ ফ্রিডম সুবিধাও দিয়েছে দেশটি। অর্থাৎ ঢাকা ও নারিতার মধ্যবর্তী একটি বিমানবন্দর থেকে যাত্রী নিয়েও এই রুটে ফ্লাইট পরিচালনা করা যাবে।

এতদিন তা আটকে ছিল করোনাভাইরাসজনিত বিধিনিষেধের কারণে। করোনার মধ্যে জাপান সরকার দেশটিতে বিদেশি পর্যটকদের আগমনে এতদিন নিষেধাজ্ঞা দিয়ে রেখেছিল।

বিমানের এ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে প্রশান্ত মহাসাগরীয় এবং এশিয়ার অন্য অঞ্চলগুলোর সঙ্গে আকাশপথে যোগাযোগের পথ খুলবে।

এ বিষয়ে বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাহিদ হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এটার ফ্লাইট অপারেশনের কাজগুলো চলছে, তবে এই মুহূর্তে বলতে পারছি না কবে নাগাদ এটা শুরু হবে। এটা আমাদের তালিকার মধ্যে আছে।’

বিমানের আগের পরিকল্পনা অনুযায়ী জাপান এয়ারের সঙ্গে কোড শেয়ার চুক্তিতে যাওয়ার কথা সংস্থাটির। দুটি এয়ারলাইনসের মধ্যে এ ধরনের চুক্তি থাকলে একজন যাত্রী কোনো একটি এয়ারলাইনসের টিকিট কেটেই অন্য এয়ারলাইনসের ফ্লাইটে নির্দিষ্ট গন্তব্যে যেতে পারেন।

বিশ্বের বিভিন্ন এয়ারলাইনস এ ধরনের চুক্তির ভিত্তিতে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট পরিচালনা করলেও এটিই হবে বাংলাদেশের প্রথম উদ্যোগ।

বর্তমানে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক গন্তব্যে পয়েন্ট টু পয়েন্ট সেবা দিয়ে থাকে বিমান। একসময় অস্ট্রেলিয়ার সিডনি ও যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে বিমানের ফ্লাইট চলাচল করলেও এখন সেগুলো বন্ধ।

বিমানের বহরে লম্বা দূরত্বে উড়তে সক্ষম অন্তত ১০টি উড়োজাহাজ থাকলেও রুট না থাকায় দীর্ঘদিন ধরেই সেগুলোর সক্ষমতার পুরোটা ব্যবহার করা যাচ্ছে না। এগুলোর মধ্যে রয়েছে ছয়টি বোয়িং সেভেন এইট সেভেন ও চারটি বোয়িং ট্রিপল সেভেন মডেলের উড়োজাহাজ। এর প্রত্যেকটি টানা ১৬ ঘণ্টা উড়তে সক্ষম।

এতদিন বিমানের লম্বা দূরত্বের ফ্লাইট চালু ছিল শুধু লন্ডন রুটে। টরন্টোতে ফ্লাইট শুরুর পর এটিও যুক্ত হয় লম্বা দূরত্বের রুটের তালিকায়।

ঢাকা থেকে সরাসরি আকাশপথে নারিতা যেতে সময় লাগে প্রায় সাড়ে ৮ ঘণ্টা। চালু হলে এটিও বিমানের লম্বা দূরত্বের রুট হবে।

টরন্টোতে সরাসরি ফ্লাইট পরিচালনা করায় ভারত, নেপালসহ আশপাশের বিভিন্ন দেশের যাত্রীদের মধ্যে রুটটি বেশ জনপ্রিয় হয়েছে। বিমান আশা করছে নারিতা রুটেও মধ্যপ্রাচ্য, মধ্য এশিয়া ও দক্ষিণ এশিয়ার অনেক যাত্রী পাওয়া যাবে।

আরও পড়ুন:
বিমানের বিরুদ্ধে বেসরকারি এয়ারলাইনসের ক্ষোভ
গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং: আধিপত্য হারাতে পারে বিমান
শাহজালালে তৃতীয় টার্মিনালের কাজ শেষ ৪৪ শতাংশ
টরন্টো ফ্লাইটে আগ্রহ বিদেশি যাত্রীদের
সাড়ে ৬ হাজার কোটি টাকার দেনা নিয়েও বিমান লাভজনক?

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The Prime Minister is coming to the press conference on Thursday

প্রধানমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে আসছেন বৃহস্পতিবার

প্রধানমন্ত্রী সংবাদ সম্মেলনে আসছেন বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ফাইল ছবি
গত ১৫ সেপ্টেম্বর যুক্তরাজ্যে যাওয়ার মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রায় তিন সপ্তাহের বিদেশ সফর শুরু হয়। যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রে ১৮ দিনের রাষ্ট্রীয় সফর শেষে ৪ অক্টোবর দেশে ফেরেন তিনি।

সদ্যঃসমাপ্ত যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে আসছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রীর বাসভবন গণভবনে বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টার দিকে এ সংবাদ সম্মেলন শুরু হবে।

সরকারপ্রধানের প্রেস সচিব ইহসানুল করিম বার্তা সংস্থা বাসসকে বুধবার এ তথ্য জানিয়েছেন।

যুক্তরাজ্য ও যুক্তরাষ্ট্রে ১৮ দিনের রাষ্ট্রীয় সফর শেষে ৪ অক্টোবর দেশে ফেরেন প্রধানমন্ত্রী।

গত ১৫ সেপ্টেম্বর যুক্তরাজ্যে যাওয়ার মধ্য দিয়ে প্রধানমন্ত্রীর প্রায় তিন সপ্তাহের সফর শুরু হয়। দেশটিতে রানি দ্বিতীয় এলিজাবেথের শেষকৃত্য এবং রাজা তৃতীয় চার্লসের সিংহাসনে আরোহণের অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী।

গত ১৯ সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্কের উদ্দেশে লন্ডন ছাড়েন প্রধানমন্ত্রী। যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকালে ২৩ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের ৭৭তম অধিবেশনে ভাষণ দেন। তিনি জাতিসংঘের বিভিন্ন পার্শ্ব বৈঠকেও অংশ নেন।

পরবর্তী সময়ে কিছু আনুষ্ঠানিকতা শেষে দেশে ফেরেন সরকারপ্রধান।

আরও পড়ুন:
শেখ হাসিনার জন্মদিনে ভূমিষ্ঠ শিশুদের উপহার দিল স্বেচ্ছাসেবক লীগ
প্রধানমন্ত্রী জাপান যাচ্ছেন নভেম্বরে
রোহিঙ্গাদের অবশ্যই ফিরে যেতে হবে: প্রধানমন্ত্রী
‘প্রধানমন্ত্রীর জীবন থেকে শিক্ষা নিতে হবে’
প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে বিটিভিতে দিনব্যাপী অনুষ্ঠান

মন্তব্য

p
উপরে