উখিয়ায় ৬ রোহিঙ্গা হত্যা: গ্রেপ্তার আরও ৪

উখিয়ায় ৬ রোহিঙ্গা হত্যা: গ্রেপ্তার আরও ৪

উখিয়ার ১৮ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের দারুল উলুম নাদওয়াতুল ওলামা আল ইসলামিয়া মাদ্রাসা মসজিদ। ছবি: নিউজবাংলা

কক্সবাজার শহর থেকে ৮০ কিলোমিটার দূরে উখিয়ার থাইনখালীর ক্যাম্প-১৮-তে বৃহস্পতিবার ভোর সোয়া ৪টার দিকে দারুল উলুম নাদওয়াতুল ওলামা আল-ইসলামিয়া মাদ্রাসায় হামলা চালায় ৪০ থেকে ৫০ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসী। তাদের গুলি ও ধারালো অস্ত্রের আঘাতে ৬ জন নিহত ও ১১ জন আহত হন।

কক্সবাজারের উখিয়ার রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ব্রাশফায়ারের পর কুপিয়ে ছয়জনকে হত্যার ঘটনায় আরও চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন) এবং উখিয়া থানা পুলিশ যৌথভাবে সোমবার রাত থেকে মঙ্গলবার ভোর পর্যন্ত উখিয়ার বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তারা করে।

নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন উখিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) গাজী সালাহউদ্দিন।

তিনি জানান, উখিয়া বালুখালী ১৮ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের মাদ্রাসায় ছয় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীকে হত্যার ঘটনায় সোমবার রাতে ১০ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের হেড মাঝি শফিউল্লাহকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

গাজী সালাহউদ্দিন আরও জানান, মঙ্গলবার ভোরে ক্যাম্পের বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়ে ফরিদ হোসেন, জাহেদ হোসেন ও মো. হাশিমকে গ্রেপ্তার করা হয়।

এ নিয়ে এই মামলায় ১৪ রোহিঙ্গাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার রফিকুল ইসলাম জানান, ছয় রোহিঙ্গা হত্যার ঘটনায় ২৫ জনের নামসহ অজ্ঞাতপরিচয়ের আরও ২৫০ জনকে আসামি করে শনিবার রাতে উখিয়া থানায় মামলা করা হয়।

মামলা করেন নিহত মাদ্রাসাছাত্র আজিজুল হকের বাবা নুরুল ইসলাম। তিনি ১৮ নম্বর রোহিঙ্গা ক্যাম্পের এইচ-ব্লকের বাসিন্দা।

মামলায় এরই মধ্যে গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন মুজিবর রহমান, ৮ নম্বর ক্যাম্পের দিলদার মাবুদ, মো. আয়ুব, ৯ নম্বর ক্যাম্পের মো. আমিন, আব্দুল মজিদ, ১৩ নম্বর ক্যাম্পের মো. আমিন, মো. ইউনুস, ১২ নম্বর ক্যাম্পের জাফর আলম, ১০ নম্বর ক্যাম্পের মো. জাহিদ ও মোহাম্মদ আমিন।

এদের মধ্যে আটজনকে ঘটনার পর এবং দুইজনকে ২১ অক্টোবর রাতে আটক করা হয়। পরে তাদের মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহম্মদ সঞ্জুর মোরশেদ জানান, মামলায় আকিজ অলি নামের একজনকে প্রধান আসামি করা হয়েছে।

কক্সবাজার ৮-এপিবিএনের কমান্ডিং অফিসার (পুলিশ সুপার) মোহাম্মদ শিহাব কায়সার খান জানান, হত্যায় জড়িত অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

কক্সবাজার শহর থেকে ৮০ কিলোমিটার দূরে উখিয়ার থাইনখালীর ক্যাম্প-১৮-তে বৃহস্পতিবার ভোর সোয়া ৪টার দিকে দারুল উলুম নাদওয়াতুল ওলামা আল-ইসলামিয়া মাদ্রাসায় হামলা চালায় ৪০ থেকে ৫০ জন সশস্ত্র সন্ত্রাসী। তাদের গুলি ও ধারাল অস্ত্রের আঘাতে ৬ জন নিহত ও ১১ জন আহত হন।

গুলিতে নিহত নুর আলম হালিমের স্বজন ও ঘটনার এক প্রত্যক্ষদর্শী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রতি রাতে ওই মাদ্রাসায় শিক্ষক-ছাত্র ও স্থানীয় রোহিঙ্গারা মিলে তাহাজ্জুতের নামাজ আদায় করেন। আমিও নিয়মিত তাহাজ্জুতে শরিক হই। তবে বৃহস্পতিবার আমার ঘুম থেকে উঠতে দেরি হওয়ায় মসজিদে দেরিতে যাই।

‘কিন্তু আমি গিয়ে দেখি মাদ্রাসার ভেতরে সবাই ছোটাছুটি করছে। অনেকে প্রকাশ্যে অস্ত্র উঁচিয়ে গুলি করছে। তাদের দেখে আমি দূরে সরে যাই। প্রায় আধা ঘণ্টা গোলাগুলি চলে। এরপর সন্ত্রাসীরা চলে যায়।’

আরও পড়ুন:
‘রোহিঙ্গা ক্যাম্প উত্তপ্ত মাদক ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে’
চীন ও রাশিয়া চাইলে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
উখিয়ায় ৬ রোহিঙ্গা হত্যা: মামলায় আসামি ২৭৫
ব্রাশফায়ারের পর কুপিয়ে হত্যা: আটক ৮
এই হামলার পেছনে কারা?

শেয়ার করুন

মন্তব্য

মা-মেয়েকে ধর্ষণ মামলা: দুজনকে যাবজ্জীবন

মা-মেয়েকে ধর্ষণ মামলা: দুজনকে যাবজ্জীবন

গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে মা মেয়েকে ধর্ষণ মামলায় দুজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এ ছাড়া একজনকে এক বছর কারাদণ্ডসহ দুই আসামিকে খালাস দিয়েছে আদালত।

গাইবান্ধার নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনাল-২ আদালতের বিচারক মঙ্গলবার দুপুর দেড়টার দিকে আবদুর রহমান এ রায় দেন।

নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ফারুক আহমেদ প্রিন্স।

যাবজ্জীবন দণ্ডিতরা হলেন এমদাদুল হক ও বেলাল হোসেন। এক বছর কারাদণ্ড পেয়েছেন আসামি খাজা মিয়া।

খালাস পাওয়া দুজন হলেন আজিজুল ইসলাম ও আসাদুল ইসলাম।

বিস্তারিত আসছে...

আরও পড়ুন:
‘রোহিঙ্গা ক্যাম্প উত্তপ্ত মাদক ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে’
চীন ও রাশিয়া চাইলে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
উখিয়ায় ৬ রোহিঙ্গা হত্যা: মামলায় আসামি ২৭৫
ব্রাশফায়ারের পর কুপিয়ে হত্যা: আটক ৮
এই হামলার পেছনে কারা?

শেয়ার করুন

নির্বাচনি সহিংসতা: ছাত্রলীগ নেতা হত্যায় মামলা

নির্বাচনি সহিংসতা: ছাত্রলীগ নেতা হত্যায় মামলা

ইউপি নির্বাচনে সহিংসতায় নিহত লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জের ইছাপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সভাপতি সজিব হোসেন। ছবি: নিউজবাংলা

রামগঞ্জ থানার ওসি আনোয়ার হোসেন জানান, ইছাপুর ইউনিয়নে চেয়ারম্যান হিসেবে সদ্য জয়ী আমিরকে প্রধান আসামি করে সজিবের বোন ২১ জনের নামসহ অজ্ঞাতপরিচয় ২০ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন। এ ঘটনায় পুলিশ এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জের ইছাপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ ও এর বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষে ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতি নিহতের ঘটনায় হত্যা মামলা হয়েছে।

নিহত সজিব হোসেনের বোন মঙ্গলবার সকালে বিজয়ী চেয়ারম্যান প্রার্থীকে প্রধান আসামি করে রামগঞ্জ থানায় মামলা করেন।

রামগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আনোয়ার হোসেন নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

তিনি জানান, ২৮ তারিখের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন না পেয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন আমির হোসেন খাঁন। তিনি এই নির্বাচনে জয় পান।

আমিরকে প্রধান আসামি করে সজিবের বোন ২১ জনের নামসহ অজ্ঞাতপরিচয় ২০ জনকে আসামি করে হত্যা মামলা করেন। এ ঘটনায় পুলিশ এখনও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।

এর আগে রোববার ওসি জানান, রোববার বিকেল পৌনে ৪টার দিকে নৌকা ও এর বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। পরে এটি সংঘর্ষ পর্যন্ত গড়ায়। সে সময় মাথায় আঘাত পান সজিব হোসেন।

তাকে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে নেয়া হয়। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় সেখান থেকে চাঁদপুরের হাসপাতালে নেয়ার পথে মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন:
‘রোহিঙ্গা ক্যাম্প উত্তপ্ত মাদক ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে’
চীন ও রাশিয়া চাইলে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
উখিয়ায় ৬ রোহিঙ্গা হত্যা: মামলায় আসামি ২৭৫
ব্রাশফায়ারের পর কুপিয়ে হত্যা: আটক ৮
এই হামলার পেছনে কারা?

শেয়ার করুন

শফি-বাবুনগরীর পাশে শায়িত হলেন জিহাদী

শফি-বাবুনগরীর পাশে শায়িত হলেন জিহাদী

শফি-বাবুনগরীর পাশে শায়িত হলেন নুরুল ইসলাম জিহাদী। সংগৃহীত ছবি

হেফাজতে ইসলামের নতুন কমিটির নায়েবে আমির সালাউদ্দিন নানুপুরী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রাতে ঢাকায় জানাজা শেষে মাদ্রাসায় নিয়ে আসা হয় হুজুরের মরদেহ। শফি সাহেব ও বাবুনগরী সাহেবের কবরের পাশে তার জন্য কবর তৈরি করা হয়েছিল। মরদেহ মাদ্রাসায় আনার পর ফজরের আজানের আগে দাফন করা হয়েছে।’

আল্লামা শাহ আহমদ শফী ও জুনায়েদ বাবুনগরীর পাশে শায়িত হলেন হেফাজতে ইসলামের প্রয়াত মহাসচিব আল্লামা নুরুল ইসলাম জিহাদী।

মঙ্গলবার ফজরের আজানের আগে হাটহাজারী দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম মাদ্রাসায় সংলগ্ন বায়তুন নূর মসজিদের পেছনে তাকে দাফন করা হয়।

নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন হেফাজতে ইসলামের নতুন কমিটির নায়েবে আমির সালাউদ্দিন নানুপুরী।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রাতে ঢাকায় জানাজা শেষে মাদ্রাসায় নিয়ে আসা হয় হুজুরের মরদেহ। শফি সাহেব ও বাবুনগরী সাহেবের কবরের পাশে তার জন্য কবর প্রস্তুত করে রাখা হয়েছিল। মরদেহ মাদ্রাসায় আনার পর ফজরের আজানের আগে দাফন করা হয়েছে।’

এর আগে সোমবার সাড়ে ১০টার দিকে রাজধানীর ল্যাবএইড হাসপাতালের চিকিৎসধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। শনিবার রাতে হৃদরোগে আক্রান্ত হওয়ায় ল্যাবএইডে ভর্তি করা হয়েছিল তাকে।

আরও পড়ুন:
‘রোহিঙ্গা ক্যাম্প উত্তপ্ত মাদক ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে’
চীন ও রাশিয়া চাইলে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
উখিয়ায় ৬ রোহিঙ্গা হত্যা: মামলায় আসামি ২৭৫
ব্রাশফায়ারের পর কুপিয়ে হত্যা: আটক ৮
এই হামলার পেছনে কারা?

শেয়ার করুন

গাজীপুরে পোশাক কারখানায় আগুন

গাজীপুরে পোশাক কারখানায় আগুন

কোনাবাড়িতে পোশাক কারখানায় লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে ছয়টি ইউনিট। ছবি: নিউজবাংলা

জয়দেবপুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার তাশারুফ হোসেন বলেন, প্রথমে কাশিমপুর ডিবিএলের একটি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। পরে জয়দেবপুর থেকে আরও তিনটি ইউনিট যোগ দেয়। ভবনের নিচতলায় আগুনের সূত্রপাত। আশাকরি দ্রুত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে।

গাজীপুরের কোনাবাড়িতে একটি পোশাক কারখানায় আগুন লেগেছে। ফায়ার সার্ভিসের ছয়টি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে।

জরুন এলাকার রিপন গার্মেন্টসে মঙ্গলবার বেলা সোয়া ১২টার দিকে আগুন লাগে।

নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জয়দেবপুর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার তাশারুফ হোসেন।

তিনি বলেন, প্রথমে কাশিমপুর ডিবিএলের একটি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে। পরে জয়দেবপুর ও উত্তরা থেকে আরও পাঁচটি ইউনিট যোগ দেয়। ভবনের নিচতলায় আগুনের সূত্রপাত। আশাকরি দ্রুত আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা সম্ভব হবে।


গাজীপুরে পোশাক কারখানায় আগুন

আরও আসছে...

আরও পড়ুন:
‘রোহিঙ্গা ক্যাম্প উত্তপ্ত মাদক ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে’
চীন ও রাশিয়া চাইলে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
উখিয়ায় ৬ রোহিঙ্গা হত্যা: মামলায় আসামি ২৭৫
ব্রাশফায়ারের পর কুপিয়ে হত্যা: আটক ৮
এই হামলার পেছনে কারা?

শেয়ার করুন

চট্টগ্রামে ট্রাকের ধাক্কায় তরুণ নিহত

চট্টগ্রামে ট্রাকের ধাক্কায় তরুণ নিহত

ফাইল ছবি

কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) চৌধুরী রেজাউল করিম জানান, ভোরে ওভারটেক করতে গিয়ে ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী ওই তরুণ আহত হন। তাকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

চট্টগ্রাম নগরীর কোতোয়ালিতে ট্রাকের ধাক্কায় এক তরুণ নিহত হয়েছেন।

কোতোয়ালি থানার নিউমার্কেট এলাকায় মোটেল সৈকতের সামনে মঙ্গলবার ভোর ৫টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) চৌধুরী রেজাউল করিম নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহতের নাম জগদীশ দাশ। তিনি চকবাজারের জয়নগর এলাকার নির্মল কান্তি দাশের ছেলে।

কোতোয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) চৌধুরী রেজাউল করিম নিউজবাংলাকে জানান, ভোরে ওভারটেক করতে গিয়ে ট্রাকের ধাক্কায় মোটরসাইকেল আরোহী ওই তরুণ আহত হন। তাকে উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ (চমেক) হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
‘রোহিঙ্গা ক্যাম্প উত্তপ্ত মাদক ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে’
চীন ও রাশিয়া চাইলে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
উখিয়ায় ৬ রোহিঙ্গা হত্যা: মামলায় আসামি ২৭৫
ব্রাশফায়ারের পর কুপিয়ে হত্যা: আটক ৮
এই হামলার পেছনে কারা?

শেয়ার করুন

বিজিবি সদস্য হত্যা: চেয়ারম্যানকে প্রধান আসামি করে মামলা

বিজিবি সদস্য হত্যা: চেয়ারম্যানকে প্রধান আসামি করে মামলা

নিহত বিজিবি নায়েক রুবেল মণ্ডল। ছবি: নিউজবাংলা

কিশোরগঞ্জ থানার ডিউটি অফিসার উপপরিদর্শক গুলনাহার বেগম জানান, মামলায় ৮ জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তাদেরকে আদালতে নেয়া হয়েছে। সব আসামিকে ধরতে অভিযান চালানো হচ্ছে।

নীলফামারীর কিশোরগঞ্জে নির্বাচনি সহিংসতায় বিজিবি সদস্য হত্যার ঘটনায় মামলা হয়েছে।

মামলায় প্রধান আসামি করা হয়েছে নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী মারুফ হোসেন অন্তিককে। এজাহারে নাম আছে আরও ৯৫ জনের।

কিশোরগঞ্জ থানায় সোমবার রাত সোয়া ১২টার দিকে মামলাটি করা হয়।

গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের পশ্চিম দলিরাম মাঝাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ললিত চন্দ্র রায় মামলাটি করেন।

নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সারওয়ার আলম। তিনি বলেন, মামলায় ৮ জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তাদেরকে আদালতে নেয়া হয়েছে।

যাদেরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে তারা হলেন পশ্চিম দলিরাম গ্রামের আনোয়ার হোসেন, ইসমাইল হোসেন, যাদু মিয়া, মজনু মিয়া, শরিফুল ইসলাম, ফরহাদ হোসেন, মো. নিশাদ ও মো. নিরব।

কিশোরগঞ্জ থানার ডিউটি অফিসার উপপরিদর্শক গুলনাহার বেগম জানান, মামলায় অজ্ঞাতপরিচয় অনেককে আসামি করা হয়েছে। প্রধান আসামিসহ জড়িত সবাইকে ধরতে অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

এর আগে ২৮ নভেম্বর ইউপি নির্বাচনে ফল ঘোষণার পর গাড়াগ্রাম ইউনিয়নের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের পশ্চিম দলিরাম মাঝাপাড়া ভোট কেন্দ্রে সহিংসতার ঘটনা ঘটে।

যা ঘটেছিল

স্থানীয়রা জানান, গাড়াগ্রাম ইউপিতে রাত সাড়ে ৮টার দিকে জাতীয় পার্টির সাবেক নেতা স্বতন্ত্র প্রার্থী জোনাব আলীকে জয়ী ঘোষণা করা হয়। সেই ফল প্রত্যাখান করেন জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান মারুফ হোসেন অন্তিকের সমর্থকরা। কেন্দ্র থেকে ব্যালটসহ নির্বাচনি সরঞ্জাম নিয়ে উপজেলা সদরে রির্টানিং কর্মকর্তার দপ্তরে যাওয়ার সময় কর্মকর্তাদের ওপর লাটিসোটা নিয়ে হামলা চালান তারা।

তারা আরও জানান, ওই সময় আত্মরক্ষায় বিজিবি সদস্য রুবেল কেন্দ্রের একটি কক্ষে আশ্রয় নিলে বিক্ষুব্ধরা সেখানে তাকে পিটিয়ে হত্যা করে পালিয়ে যান। পুলিশের গাড়ি ও ভোট কেন্দ্রে অগ্নিসংযোগের চেষ্টাও চলান তারা। আত্মরক্ষায় তখন কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

কেন্দ্রের প্রিসাইডিং কর্মকর্তা ললিত চন্দ্র রায় বলেন, ‘ফল ঘোষণার পর লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী মারুফ হোসেন অন্তিক লোকজন নিয়ে এসে ওই কেন্দ্রে তাকে জয়ী ঘোষণার দাবি জানিয়ে নির্বাচনি সরঞ্জাম নিতে বাধা দেন।

‘ওই সময় আমাদের ওপর আক্রমণ চালাতে শুরু করলে আমি নিজে, একজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, কয়েকজন পুলিশ, বিজিবি ও আনসার সদস্য আহত হই। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা পরে আত্মরক্ষার্থে কয়েক রাউন্ড গুলি ছোড়েন।’

আরও পড়ুন:
‘রোহিঙ্গা ক্যাম্প উত্তপ্ত মাদক ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে’
চীন ও রাশিয়া চাইলে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
উখিয়ায় ৬ রোহিঙ্গা হত্যা: মামলায় আসামি ২৭৫
ব্রাশফায়ারের পর কুপিয়ে হত্যা: আটক ৮
এই হামলার পেছনে কারা?

শেয়ার করুন

ব‍্যবসায়ীর মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা

ব‍্যবসায়ীর মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা

মেহেরপুরের গাংনীতে এক মুরগি ব‍্যবসায়ীকে হত‍্যার অভিযোগে ৯৯৯ ফোন কল। ছবি: নিউজবাংলা

নিহতের স্ত্রী মরফিনা খাতুন বলেন, ‘আমার স্বামী রাত থেকে অসুস্থ। এর আগে তার দুইবার স্ট্রোক হইছিল। রাতে তার স্প্রে (ইনহেলার) ফুরি গিছে। সকালে মুরগিগুলারে খাবারও দিছে। আর আজকি স্ট্রোক কইরি মইরি গিছে।’

মেহেরপুরের গাংনীতে এক ব‍্যবসায়ীর মৃত্যু নিয়ে ধোঁয়াশা তৈরি হয়েছে। পরিবার বলছে, তিনি স্ট্রোক করে মারা গেছেন। তবে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বরে ফোন করে কেউ অভিযোগ করেছেন নির্বাচনি সহিংসতায় মৃত্যু হয়েছে তার।

মৃত হাশমত আলীর বাড়ি গাংনী উপজেলার কাজীপুর ইউনিয়নের আলম বাজার গ্রামে। তিনি মুরগি ব‍্যবসায়ী ছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে প্রতিবেশীদের ঝগড়া মেটাতে গিয়ে হাশমত আলী হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়েন। এর কিছুক্ষণ পরই তার মৃত্যু হয়।

মৃতের স্ত্রী মরফিনা খাতুন বলেন, ‘আমার স্বামী রাত থেকে অসুস্থ। এর আগে তার দুইবার স্ট্রোক হয়েছিল। রাতে তার স্প্রে (ইনহেলার) শেষ হয়ে যায়। সকালে স্ট্রোক করে মারা গেছে।’

স্থানীয় কাজীপুর ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস‍্য খবির উদ্দিন জানান, তিনি দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ ছিলেন। অথচ কে বা কারা ৯৯৯ ফোন দিয়ে বলেছেন, নির্বাচনি সহিংসতায় মারা গেছেন।

গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর রাজ্জাক নিউজবাংলাকে বলেন, মৃত্যুর কারণ নিশ্চিত হতে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন‍্য মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এ ঘটনায় গাংনী থানায় মামলা হবে বলে জানান ওসি।

আরও পড়ুন:
‘রোহিঙ্গা ক্যাম্প উত্তপ্ত মাদক ও আধিপত্য বিস্তার নিয়ে’
চীন ও রাশিয়া চাইলে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হবে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী
উখিয়ায় ৬ রোহিঙ্গা হত্যা: মামলায় আসামি ২৭৫
ব্রাশফায়ারের পর কুপিয়ে হত্যা: আটক ৮
এই হামলার পেছনে কারা?

শেয়ার করুন