পীরগঞ্জে সহিংসতা: সৈকত মণ্ডলের স্বীকারোক্তি

পীরগঞ্জে সহিংসতা: সৈকত মণ্ডলের স্বীকারোক্তি

পীরগঞ্জে হিন্দুপল্লিতে সহিংসতার ঘটনার মামলায় সৈকত মণ্ডল আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। ছবি: নিউজবাংলা

সৈকত মণ্ডলের মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পীরগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সুদীপ্ত শাহীন জানান, র‍্যাবের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সৈকতকে আদালতে হাজির করা হয়। তিনি স্বেচ্ছায় ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়ে জবানবন্দি দিয়েছেন।

রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দুপল্লিতে সহিংসতার ঘটনায় ‘প্রধান অভিযুক্ত’ সদ্য সাবেক ছাত্রলীগ নেতা মো. সৈকত মণ্ডল আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

রংপুরের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মো. দেলোয়ার হোসেনের আদালতে রোববার সন্ধ্যায় তিনি জবানবন্দি দেন। শুনানি শেষে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন আদালতের সাধারণ নিবন্ধক মো. শহিদুর রহমান।

হিন্দুপল্লিতে অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুর ও লুটপাটের মামলায় তিন দিনের রিমান্ডে থাকা ৩৭ আসামিকে বিকেলে আদালতে তোলা হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান নতুন করে রিমান্ড আবেদন না করায় শুনানি শেষে তাদেরও কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেয় আদালত।

আসামিদের পক্ষে জামিন আবেদন করেছিলেন একাধিক আইনজীবী। তদন্ত কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান বলেন, রিমান্ডে আসামিদের কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। এখনও তদন্ত চলছে। প্রয়োজনে আবারও রিমান্ডের আবেদন করা হবে।

সৈকত মণ্ডলের মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পীরগঞ্জ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সুদীপ্ত শাহীন জানান, র‍্যাবের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলায় সৈকতকে আদালতে হাজির করা হয়। তিনি স্বেচ্ছায় ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়ে জবানবন্দি দিয়েছেন।

সুদীপ্ত শাহীন জানান, অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুর ও লুটপাটের মামলায় মসজিদের ইমাম রবিউল ইসলামকে আদালতে তোলা হলে তিনিও স্বেচ্ছায় ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা আদালতকে জানিয়েছেন।

১৭ অক্টোবর রাত সাড়ে ৯টার দিকে ফেসবুকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাতের অভিযোগ তুলে পীরগঞ্জের রামনাথপুর উত্তর পাড়া হিন্দুপল্লিতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় আলাদা চারটি মামলা হয়। এর মধ্যে তিনটি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে। একটি অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুর ও লুটপাটের মামলা।

রোববার পর্যন্ত চার মামলায় ৬৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে জানান পীরগঞ্জ সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান।

পীরগঞ্জে হিন্দুপল্লিতে সহিংসতার ঘটনায় ‘প্রধান অভিযুক্ত’ সদ্য সাবেক ছাত্রলীগ নেতা সৈকত মণ্ডল ও তার সহযোগী বটেরহাট মসজিদের ইমাম রবিউল ইসলামের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা করে র‍্যাব।

পীরগঞ্জ থানায় রোববার সকালে এই মামলা করেন র‍্যাব-১৩-এর ডিএডি আব্দুল আজিজ।

সৈকত মণ্ডল কারমাইকেল কলেজের ছাত্রলীগ নেতা ছিলেন। ফেসবুকে উসকানিমূলক পোস্ট দেয়ায় সম্প্রতি তাকে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেয়ার কথা জানায় ছাত্রলীগ।

সৈকত ও তার সহযোগীর বিষয়ে শনিবার র‍্যাব জানায়, গ্রেপ্তারকৃতরা উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে অরাজকতা তৈরি এবং সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের লক্ষ্যে হামলা-অগ্নিসংযোগ ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অপপ্রচার এবং মাইকিং করে হামলাকারীদের জড়ো করেন বলে জানিয়েছেন। গ্রেপ্তার সৈকত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে উসকানিমূলক, বিভ্রান্তিকর ও মিথ্যাচারের মাধ্যমে স্থানীয় জনসাধারণকে উত্তেজিত করে তোলেন। এ ছাড়া তিনি ওই হামলা ও অগ্নিসংযোগে অংশগ্রহণে জনসাধারণকে উদ্বুদ্ধ করেন।

আরও পড়ুন:
সাম্প্রদায়িক হামলা: নিজের কর্মীদের দোষ খুঁজে পাননি নুর
ইকবাল নারী নির্যাতন, ইকরাম চুরি মামলার আসামি
জামিন নাকচ, রুমা সরকার কারাগারে
রুমা সরকারকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন
‘সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘোলাটের অপচেষ্টা রুখতে হবে’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

‘চাঁদা না দিলে কাফনের কাপড় কিনে রাখিস’

‘চাঁদা না দিলে কাফনের কাপড় কিনে রাখিস’

নীলফামারী প্রেস ক্লাবে বৃহস্পতিবার সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য দেন পাঠানপাড়া এমইউ আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ রুহুল আমীন। ছবি: নিউজবাংলা

জলঢাকার পাঠানপাড়া এমইউ আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ বলেন, ‘২৯ নভেম্বর সন্ধ্যায় আমার মোবাইল ফোনে অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। না দিলে দাফনের কাপড় কিনে রাখতে বলেন। আমার রক্ত কুকুর-শেয়ালে খাবে বলেও হুমকি দেয়া হয়।’

নীলফামারীর জলঢাকায় এক মাদ্রাসা অধ্যক্ষের কাছে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা চেয়ে না পেলে হত্যার হুমকির অভিযোগ উঠেছে। জলঢাকার পাঠানপাড়া এমইউ আলিম মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মো. রুহুল আমীন আজাদকে ওই হুমকি দেয়া হয়েছে।

অধ্যক্ষ রুহুল আমীন আজাদ বৃহস্পতিবার নীলফামারী প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এই অভিযোগ করেন।

অধ্যক্ষ বলেন, ‘২৯ নভেম্বর সন্ধ্যায় আমার মোবাইল ফোনে অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তি ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। একইসঙ্গে হুমকি দিয়ে বলে-চাঁদা না দিলে দাফনের কাপড় কিনে রাখিস। তোর রক্ত কুকুর-শেয়ালে খাবে।

‘বিষয়টি নিয়ে আমার ছেলে আশিক ইলাহি আইনি সহায়তার জন্য মীরগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে গেলে সেখান থেকে পাঠানো হয় জলঢাকা থানায়। সেখানে গিয়ে এজাহার দিলে পুলিশ কর্মকর্তা ৫৩ ঘণ্টা পর তা সাধারণ ডায়েরি হিসেবে গ্রহণ করেন।’

তিনি বলেন, ‘জানা গেছে যিনি ফোন করে টাকা চেয়েছেন, তিনি মীরগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের ২৮ নভেম্বরের নির্বাচনে পরাজিত প্রার্থী হুকুম আলীর ভাই আনিসুর রহমান। তিনি অন্যজনের ফোন থেকে আমাকে হুমকি দেন।’

সংবাদ সম্মেলনে মাদ্রাসার কয়েকজন শিক্ষক ও অধ্যক্ষের ছেলে আশিক ইলাহি উপস্থিত ছিলেন।

আশিক ইলাহি বলেন, ‘আইনি সহায়তার জন্য মীরগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র এবং জলঢাকা থানায় এজাহারের কপি পাঁচবার পরিবর্তন করেছেন পুলিশ কর্মকর্তারা।’

অধ্যক্ষ বলেন, ‘প্রতিদিনই আমাকে মাদ্রাসায় যেতে হয়, কখন কে মেরে ফেলবে এ নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি। আমার দুই ছেলে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ে। অবিলম্বে ঘটনার সঙ্গে জড়িতকে গ্রেপ্তারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হোক।’

যে মোবাইল নম্বর থেকে টাকা চাওয়া হয়েছে, সেটি বন্ধ পাওয়া গেছে। ঘটনার বিষয়ে জানতে হুকুম আলীর মোবাইল ফোনে কল দেয়া হলেও তিনি রিসিভ করেননি।

জলঢাকা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ফিরোজ কবির জানান, বাদীপক্ষ যে কল রেকর্ড দিয়েছে, সেখানে চাঁদার কোনো বিষয় ছিল না। অন্যজনের নাম্বার থেকে ফোন করা হয়। এ ব্যাপারে একটি সাধারণ ডায়েরি নেয়া হয়েছে।

ওসি ফিরোজ জানান, এ বিষয়ে তদন্তের জন্য মীরগঞ্জ পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের উপপরিদর্শক (এসআই) শফিকুল ইসলামকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছে।

আরও পড়ুন:
সাম্প্রদায়িক হামলা: নিজের কর্মীদের দোষ খুঁজে পাননি নুর
ইকবাল নারী নির্যাতন, ইকরাম চুরি মামলার আসামি
জামিন নাকচ, রুমা সরকার কারাগারে
রুমা সরকারকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন
‘সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘোলাটের অপচেষ্টা রুখতে হবে’

শেয়ার করুন

মাদ্রাসাশিক্ষকের পুরুষাঙ্গ কর্তন, ছাত্র আটক

মাদ্রাসাশিক্ষকের পুরুষাঙ্গ কর্তন, ছাত্র আটক

পুলিশ হেফাজতে থাকা শিক্ষার্থীর দাবি, মাদ্রাসাশিক্ষক আতাবুর রহমান বুধবার রাতে ছাত্রকে খাবারের দাওয়াত দিয়ে বাড়িতে নিয়ে যেতে চান। পথিমধ্যে বলাৎকারের চেষ্টা হলে ছাত্র পকেটে থাকা 'নেইল কাটার' দিয়ে শিক্ষকের পুরুষাঙ্গে আঘাত করেন।

ময়মনসিংহের নান্দাইলে এক মাদ্রাসাশিক্ষকের পুরুষাঙ্গ কেটে নেয়ার অভিযোগে পুলিশ আটক করেছে আবাসিক এক ছাত্রকে। ১৬ বছর বয়সী এ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে। শিক্ষক ভর্তি হাসপাতালে।

নান্দাইল মডেল থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) বাবলু রহমান খান নিউজবাংলাকে জানান, বুধবার রাতে উপজেলার বেতাগৈর ইউনিয়নের পলাশিয়া গ্রামে পুরুষাঙ্গ কর্তনের এ ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত ছাত্রকে আটক করা হয়েছে। মামলা প্রক্রিয়াধীন।

পুলিশ হেফাজতে থাকা শিক্ষার্থীর দাবি, শিক্ষক আতাবুর রহমান বুধবার রাতে খাবারের দাওয়াত দিয়ে বাড়িতে নিয়ে যেতে চান ছাত্রকে। পথিমধ্যে তিনি ছাত্রকে কাছে টেনে নিয়ে শরীরের বিভিন্ন অংশে হাত বোলাতে থাকেন। এক পর্যায়ে বলাৎকারের চেষ্টা হলে ছাত্র পকেটে থাকা 'নেইল কাটার' দিয়ে শিক্ষকের পুরুষাঙ্গে আঘাত করেন। এরপর পালাতে গেলে লোকজন ছাত্রকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করে।

রক্তাক্ত অবস্থায় শিক্ষক আতাবুরকে উদ্ধার করে এলাকার লোকজন হাসপাতালে নেন। তিনি বর্তমানে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি আছেন। ঘটনার ব্যাপারে তার বক্তব্য জানা সম্ভব হয়নি।

পুলিশ জানায়, বুধবার রাতে খারুয়া ইউনিয়নের টাওয়াইল গ্রামে ওয়াজ মাহফিল চলছিল। মাদ্রাসা মাঠের সেই মাহফিলে অন্যদের পাশাপাশি অংশ নেন শিক্ষক ও ছাত্র। আবাসিক ছাত্রকে রাতে মাদ্রাসায় না পাঠিয়ে নিজ বাড়িতে নেয়ার চেষ্টা করেন শিক্ষক। তখন পথে ঘটে পুরুষাঙ্গ কর্তনের ঘটনা।

নান্দাইল মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান আকন্দ বৃহস্পতিবার রাতে বলেন, ‘মামলা করতে মাদ্রাসাশিক্ষকের বাবা থানায় এসেছেন। মামলা হলে ছাত্রকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হবে।’

আরও পড়ুন:
সাম্প্রদায়িক হামলা: নিজের কর্মীদের দোষ খুঁজে পাননি নুর
ইকবাল নারী নির্যাতন, ইকরাম চুরি মামলার আসামি
জামিন নাকচ, রুমা সরকার কারাগারে
রুমা সরকারকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন
‘সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘোলাটের অপচেষ্টা রুখতে হবে’

শেয়ার করুন

ধর্মসাগরে বড়শিতে ধরা পড়ল ৪৩ কেজির ব্ল্যাক কার্প

ধর্মসাগরে বড়শিতে ধরা পড়ল ৪৩ কেজির ব্ল্যাক কার্প

বড়শিতে ধরা পড়েছে ৪৩ কেজি ওজনের ব্ল্যাক কার্প মাছ। ছবি: নিউজবাংলা

ব্যবসায়ী রিপন বলেন, ’বর্তমানে কুমিল্লা ধর্মসাগর দীঘিটি আমরা ৩০ জন অংশীদার মিলে লিজ নিয়ে মাছ চাষ করছি। প্রায় দিনই বড়শিতে মাছ ধরি। বৃহস্পতিবার বিকেলে দীঘিতে ছিপ ফেলি। রাত সোয়া ৮টার দিকে মাছটি বড়শিতে আটকায়। তবে ৪৩ কেজি ওজনের মাছটি পাড়ে তুলতে ৪৫ মিনিট সময় লাগে।’

কুমিল্লায় ধর্মসাগর দীঘিতে এক ব্যবসায়ীর বড়শিতে ধরা পড়েছে ৪৩ কেজি ওজনের একটি ব্ল্যাক কার্প মাছ।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় জাহিদুল্লাহ রিপন নামের ব্যবসায়ীর বড়শিতে এ মাছ ধরা পড়ে।

মাছ ধরা পড়ার খবরে ভিড় করেন শতাধিক মানুষ। এত বড় ব্ল্যাক কার্প দেখতে ঘটনাস্থলে আসেন কুমিল্লা সদর আসনের সাংসদ বীর মুক্তিযোদ্ধা আকম বাহাউদ্দীন বাহারও।

এমপি বাহার বলেন, ’কুমিল্লা শহরে অনেক দীঘি আছে। তবে সবচেয়ে বড় দীঘিটি হলো ধর্মসাগর। এমন বড় মাছ ধর্মসাগরেই সম্ভব। আমার ধারণা, এমন আরও বড় মাছ আছে ধর্মসাগরে।’

ব্যবসায়ী রিপন বলেন, ’বর্তমানে কুমিল্লা ধর্মসাগর দীঘিটি আমরা ৩০ জন অংশীদার মিলে লিজ নিয়ে মাছ চাষ করছি। প্রায় দিনই বড়শিতে মাছ ধরি। বৃহস্পতিবার বিকেলে দীঘিতে ছিপ ফেলি। রাত সোয়া ৮টার দিকে মাছটি বড়শিতে আটকায়। তবে ৪৩ কেজি ওজনের মাছটি পাড়ে তুলতে ৪৫ মিনিট সময় লাগে।’

রিপন বলেন, ’এত বড় মাছ আমি এর আগে দেখিনি। আজ নিজের বড়শিতে উঠেছে। খুব ভালো লাগছে।’

কুমিল্লা জেলা মৎস্য কর্মকর্তা শরিফ উদ্দিন বলেন, ’ব্ল্যাক কার্প মাছ আমাদের দেশের নদী ও পুকুরে হয়। বিশেষ করে যেসব পুকুর দীঘিতে শামুক-ঝিনুক বেশি থাকে সেখানে ব্ল্যাক কার্প মাছ বেশি হয়। ধর্মসাগর দীঘিতে প্রচুর শামুক-ঝিনুক থাকায় এখানে ব্ল্যাক কার্প হয়।’

আরও পড়ুন:
সাম্প্রদায়িক হামলা: নিজের কর্মীদের দোষ খুঁজে পাননি নুর
ইকবাল নারী নির্যাতন, ইকরাম চুরি মামলার আসামি
জামিন নাকচ, রুমা সরকার কারাগারে
রুমা সরকারকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন
‘সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘোলাটের অপচেষ্টা রুখতে হবে’

শেয়ার করুন

মারা গেল মুন্সীগঞ্জে দগ্ধ ভাই-বোন

মারা গেল মুন্সীগঞ্জে দগ্ধ ভাই-বোন

পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘দুই শিশু মারা গেছে। ভাই ইয়াছিন মারা গেছে রাত পৌনে ৮ টার দিকে। আর বোন নুহু আক্তার মারা গেছে রাত সাড়ে ৯টার দিকে। মরদেহ বার্ন ইউনিট মর্গে রাখা হয়েছে, বিষয়টি মুন্সিগঞ্জ থানায় জানানো হয়েছে। দগ্ধ দম্পতির অবস্থা আশঙ্কাজনক।’

মুন্সীগঞ্জে অগ্নিকাণ্ডে দগ্ধ একই পরিবারের চারজনের মধ্যে দুটি শিশু মারা গেছে। এরা সম্পর্কে ভাই-বোন।

বৃহস্পতিবার ভোরে সদর উপজেলার মোক্তারপুর এলাকার একটি ভবনে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

দগ্ধ স্বামী-স্ত্রী ও তাদের দুই ছেলে-মেয়েকে উদ্ধার করে রাজধানীর শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটে আনা হলে রাতে ভাই-বোনের মৃত্যু হয়।

নিহতরা হলো ছয় বছরের ইয়াসিন ও তিন বছরের নুহু আক্তার।

ইয়াসিনের শরীরে ৪৪ শতাংশ দগ্ধ ছিল। তার ছোট বোন নুহু ৩২ শতাংশ দগ্ধ হয়েছিল।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতাল পুলিশ ফাড়ির ইনচার্জ (পরিদর্শক) বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘দুই শিশু মারা গেছে। ভাই ইয়াছিন মারা গেছে রাত পৌনে ৮ টার দিকে। আর বোন নুহু আক্তার মারা গেছে রাত সাড়ে ৯টার দিকে। মরদেহ বার্ন ইউনিট মর্গে রাখা হয়েছে, বিষয়টি মুন্সীগঞ্জ থানায় জানানো হয়েছে। দগ্ধ দম্পতির অবস্থা আশঙ্কাজনক।’

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, মোহাম্মদ কাউসার ও তার স্ত্রী শান্তা বেগম দুই সন্তানকে নিয়ে মুন্সীগঞ্জের মুক্তারপুর এলাকায় একটি বহুতল ভবনের দ্বিতীয় তলায় থাকেন। ওই বাসাতেই ভোর সাড়ে ৪টার দিকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

কাউসারের ভগ্নিপতি মাসুদ মিয়া বলেন, কাউসার শাহ সিমেন্টের জাহাজের রক্ষণাবেক্ষণের কাজ করেন। আমাদের ধারণা সিগারেটের আগুন বা কোয়েলের থেকে আগুন ধরতে পারে।

স্থানীয় ফায়ার সার্ভিসের কর্মী আবু ইউসুফ জানান, হাজী জয়নালের চারতলা ভবনের দ্বিতীয় তলার ভাড়াটে কাউসারের ফ্ল্যাটের রান্না ঘরে তিতাস গ্যাসের সঞ্চালন লাইনের লিকেজ থেকে বিস্ফোরণ ঘটে। পরে রান্নাঘর ও অন্য দুটি ঘরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এতে দগ্ধ হন কাউসারসহ তার পরিবারের চার সদস্য।

আরও পড়ুন:
সাম্প্রদায়িক হামলা: নিজের কর্মীদের দোষ খুঁজে পাননি নুর
ইকবাল নারী নির্যাতন, ইকরাম চুরি মামলার আসামি
জামিন নাকচ, রুমা সরকার কারাগারে
রুমা সরকারকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন
‘সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘোলাটের অপচেষ্টা রুখতে হবে’

শেয়ার করুন

‘পশ্চিমারা অবাক বিস্ময়ে বাংলাদেশের উন্নতি দেখছে’

‘পশ্চিমারা অবাক বিস্ময়ে বাংলাদেশের উন্নতি দেখছে’

সমাবেশে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। ছবি: নিউজবাংলা

মন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, ‘যে পাকিস্তান আমাদের শোষণ করে করাচি-ইসলামাবাদ গড়েছিল, সেই পাকিস্তান অর্থনীতিতে আমাদের অর্ধেকও না। আমাদের প্রতিবেশী বিশাল দেশ ভারতের চেয়ে আমাদের মাথাপিছু আয় বেশি। এই অভূতপূর্ব উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারণে।’

গত এক যুগে বাংলাদেশ অভূতপূর্ব উন্নতি করেছে বলে মন্তব্য করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান।
তিনি বলেছেন, ‘পশ্চিমারা এক সময় বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি বলত; কিন্তু গত ১২ বছরে বাংলাদেশের উন্নতি অবাক বিস্ময় নিয়ে তাকিয়ে দেখছে।’
বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় সুনামগঞ্জের ছাতকে শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত এক সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।
মন্ত্রী বলেন, ‘যে পাকিস্তান আমাদের শোষণ করে করাচি-ইসলামাবাদ গড়েছিল, সেই পাকিস্তান অর্থনীতিতে আমাদের অর্ধেকও না। আমাদের প্রতিবেশী বিশাল দেশ ভারতের চেয়ে আমাদের মাথাপিছু আয় বেশি। আর এই অভূতপূর্ব উন্নয়ন সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ নেতৃত্বের কারণে।’
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গ্লোবাল আইসিটি এক্সলিন্স অ্যাওয়ার্ড ও তার ছেলে সজীব ওয়াজেদ জয় অ্যাসোসিও লিডারশীপ অ্যাওয়ার্ড লাভ করায় গণসমাবেশ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ছাতক উপজেলা আওয়ামী লীগ ও পৌর ছাত্রলীগ।
ছাতক পৌর মেয়র আবুল কালাম চৌধুরীর সভাপতিত্বে সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল হুদা মুকুট, জেলা আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক শামীম আহমেদ চৌধুরী প্রমুখ।

আরও পড়ুন:
সাম্প্রদায়িক হামলা: নিজের কর্মীদের দোষ খুঁজে পাননি নুর
ইকবাল নারী নির্যাতন, ইকরাম চুরি মামলার আসামি
জামিন নাকচ, রুমা সরকার কারাগারে
রুমা সরকারকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন
‘সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘোলাটের অপচেষ্টা রুখতে হবে’

শেয়ার করুন

চকলেট দিতে ডেকে নিয়ে শিশুকে ‘বলাৎকার’

চকলেট দিতে ডেকে নিয়ে শিশুকে ‘বলাৎকার’

ওই শিশুর বাবা নিউজবাংলাকে জানান, হাকিম মিয়া ওই এলাকার কৃষিকাজ করেন। গত মঙ্গলবার বিকেলে চকলেটের লোভ দেখিয়ে তার সাত বছরের ছেলেকে লঙ্গন নদীর পাড়ে নিয়ে বলাৎকার করেন হাকিম।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে সাত বছরের শিশুকে বলাৎকারের অভিযোগে এক যুবককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

হাকিম মিয়া নামে ওই যুবককে বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার ভলাকুট ইউনিয়নের ভলাকুট গ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

হাকিম মিয়া ইউনিয়নের বাইংলাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা।

নাসিরনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাবিবুল্লাহ সরকার তথ্যগুলো নিশ্চিত করেছেন।

ওই শিশুর বাবা নিউজবাংলাকে জানান, হাকিম মিয়া ওই এলাকার কৃষিকাজ করেন। গত মঙ্গলবার বিকেলে চকলেটের লোভ দেখিয়ে তার সাত বছরের ছেলেকে লঙ্গন নদীর পাড়ে নিয়ে বলাৎকার করেন হাকিম। শিশুর চিৎকারে এলাকার লোকজন এগিয়ে গেলে হাকিম পালিয়ে যান।

তিনি জানান, ছেলেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয় সেদিন। বুধবার উন্নত চিকিৎসার জন্য নেয়া হয় ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে।

নাসিরনগর থানার ওসি হাবিবুল্লাহ সরকার বলেন, এ ঘটনায় থানায় মামলা করা হয়েছে। অভিযুক্ত হাকিমকে গ্রেপ্তার করে বৃহস্পতিবার বিকেলে পুলিশ তাকে আদালতে সোপর্দ করে।
শিশুটি বর্তমানে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আরও পড়ুন:
সাম্প্রদায়িক হামলা: নিজের কর্মীদের দোষ খুঁজে পাননি নুর
ইকবাল নারী নির্যাতন, ইকরাম চুরি মামলার আসামি
জামিন নাকচ, রুমা সরকার কারাগারে
রুমা সরকারকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন
‘সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘোলাটের অপচেষ্টা রুখতে হবে’

শেয়ার করুন

পরীক্ষা কেন্দ্রে মোবাইল, শিক্ষককে অব্যাহতি

পরীক্ষা কেন্দ্রে মোবাইল, শিক্ষককে অব্যাহতি

সাতকানিয়ার ইউএনও বলেন, ‘এইচএসসি পরীক্ষার প্রথম দিন সকালে কর্নেল অলি আহমদ বীর বিক্রম কলেজ কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে ওই শিক্ষকের কাছে একটি অ্যান্ড্রয়েড ফোন পাওয়া যায়। এ ঘটনায় কেন্দ্র সচিবকে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়। তিনি ব্যবস্থা নিয়েছেন।’

চট্টগ্রামের সাতকানিয়ায় এইচএসসি পরীক্ষা চলার সময় কেন্দ্রে মোবাইল ফোন নিয়ে যাওয়ায় পর্যবেক্ষক নূর উদ্দিনকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে উপজেলার বাজালিয়া কর্নেল (অব.) অলি আহমদ বীর বিক্রম কলেজে এ ঘটনা ঘটে। অব্যাহতি পাওয়া নূর উদ্দিন ওই কলেজের গণিত বিভাগের শিক্ষক।

সাতকানিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফাতেমা তুজ জোহরা নিউজবাংলাকে বলেন, ‘উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রথম দিন সকালে কর্নেল অলি আহমদ বীর বিক্রম কলেজ কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে ওই শিক্ষকের কাছে একটি অ্যান্ড্রয়েড ফোন পাওয়া যায়। এ ঘটনায় কেন্দ্র সচিবকে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলা হয়। তিনি ব্যবস্থা নিয়েছেন।’

পরীক্ষা চলার সময় কেন্দ্রে মোবাইল ফোন না নেয়ার নির্দেশনা রয়েছে বলেও জানান ইউএনও।

আরও পড়ুন:
সাম্প্রদায়িক হামলা: নিজের কর্মীদের দোষ খুঁজে পাননি নুর
ইকবাল নারী নির্যাতন, ইকরাম চুরি মামলার আসামি
জামিন নাকচ, রুমা সরকার কারাগারে
রুমা সরকারকে কারাগারে আটক রাখার আবেদন
‘সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনা ঘোলাটের অপচেষ্টা রুখতে হবে’

শেয়ার করুন