এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন যাবে ফয়েল প্যাকেটে

এসএসসি পরীক্ষায় প্রশ্ন যাবে ফয়েল প্যাকেটে

প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে ফয়েল পেপারে মোড়ানো প্যাকেটে কেন্দ্রে কেন্দ্রে প্রশ্নপত্র পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। কেন্দ্রের বাইরে অভিভাবকরা যেন অযথা ভিড় না করেন, সে জন্য কেন্দ্রসচিবের পক্ষ থেকে মাইকিং করে সতর্ক করতে বলা হয়েছে। পরীক্ষার দিন কেন্দ্রের ২০০ গজ পর্যন্ত এলাকায় অভিভাবক ও সাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হবে।

চলতি বছরের এসএসসি ও সমমান পরীক্ষায় প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে নেয়া হচ্ছে নানা সতর্কতামূলক পদক্ষেপ। এর অংশ হিসেবে ফয়েল পেপারে মোড়ানো প্যাকেটে প্রশ্নপত্র পাঠানো হবে কেন্দ্রে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে বৃহস্পতিবার পরীক্ষার প্রস্তুতি সভায় এ বিষয়ে আলোচনা ও সিদ্ধান্ত হয়।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এস এম আমিরুল ইসলাম বলেন, ‘এসএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতি সম্পর্কে বৈঠকে জানতে চাওয়া হয়েছে, আমরা বিস্তারিত জানিয়েছি। ইতোমধ্যে প্রশ্নপত্র সরকারি ট্রেজারে পাঠানো হয়েছে। ঢাকা বোর্ডের অধীনে ১৩টি জেলার মধ্যে ৮টিতে ওএমআর শিট, উত্তরপত্র ও অতিরিক্ত উত্তরপত্র পাঠানো হয়েছে, বাকি ৫ জেলায় আগামী সপ্তাহের মধ্যে পাঠানো হবে। সেসব বিষয় আজ মন্ত্রণালয়কে অবহিত করা হয়েছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘পরীক্ষা কেন্দ্রে কড়া নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। এ ছাড়া আরও কয়েকটি বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে, যা পরে জানানো হবে।’

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা জানান, সভায় শুরুতে এসএসসি পরীক্ষার প্রস্তুতির বিষয়ে শিক্ষা বোর্ডগুলোর প্রধানদের কাছে জানতে চাওয়া হয়। পরীক্ষা কেন্দ্রে কীভাবে কঠোর নিরাপত্তা ও স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করা সম্ভব হবে, সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়।

তিনি আরও জানান, প্রশ্নপত্র ফাঁস রোধে ফয়েল পেপারে মোড়ানো প্যাকেটে কেন্দ্রে কেন্দ্রে প্রশ্নপত্র পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। কেন্দ্রের বাইরে অভিভাবকরা যেন অযথা ভিড় না করেন, সে জন্য কেন্দ্রসচিবের পক্ষ থেকে মাইকিং করে সতর্ক করতে বলা হয়েছে।
পরীক্ষার দিন কেন্দ্রের ২০০ গজ পর্যন্ত এলাকায় অভিভাবক ও সাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হবে।

সভায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন সভাপতিত্ব করেন। উপস্থিত ছিলেন সব শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকসহ শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা।

চলতি বছরে এসএসসি পরীক্ষা শুরু হবে ১৪ নভেম্বর। তা চলবে ২৩ নভেম্বর পর্যন্ত। এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে শুধু নৈর্বাচনিক বিষয়ে। অন্যান্য আবশ্যিক বিষয়ে আগের পাবলিক পরীক্ষার সাবজেক্ট ম্যাপিং করে মূল্যায়নের মাধ্যমে নম্বর দেয়া হবে। এবার চতুর্থ বিষয়েরও পরীক্ষা নেয়া হবে না।

নির্ধারিত সূচিতে সকাল ১০টা থেকে বেলা ১১টা ৩০ মিনিট এবং বেলা ২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত পরীক্ষা হবে।

কবে কোন পরীক্ষা
১৪ নভেম্বর পদার্থবিজ্ঞান (তত্ত্বীয়), ১৫ নভেম্বর বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা ও হিসাববিজ্ঞান এবং ১৬ নভেম্বর রসায়ন (তত্ত্বীয়), ১৮ নভেম্বর শারীরিক শিক্ষা ও ক্রীড়া (তত্ত্বীয়), ২১ নভেম্বর ভূগোল ও পরিবেশ ও ফিন্যান্স ও ব্যাকিং, ২২ নভেম্বর উচ্চতর গণিত (তত্ত্বীয়) ও জীববিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) এবং ২৩ নভেম্বর পৌরনীতি ও নাগরিকতা, অর্থনীতি ও ব্যবসায় উদ্যোগ পরীক্ষা হবে।

পরীক্ষার্থীদের জন্য নির্দেশনা
করোনা মহামারির কারণে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা হবে। পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষার্থীদের আসন গ্রহণ করতে হবে। পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা শুরুর তিন দিন আগে প্রতিষ্ঠানপ্রধানদের কাছ থেকে প্রবেশপত্র সংগ্রহ করতে হবে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হলে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। দেড় বছর পর ১২ সেপ্টেম্বর খুলে দেয়া হয়েছে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো। এরই ধারাবাহিকতায় চলছে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নেয়ার প্রস্তুতি।

আরও পড়ুন:
এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ
এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ১৩ নির্দেশনা
যে রুটিনে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

বুয়েটের ইইইতে পড়বেন ৩ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম সিয়াম

বুয়েটের ইইইতে পড়বেন ৩ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম সিয়াম

বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজের ছাত্র মেফতাউল আলম সিয়াম তিনটি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় তিন ইউনিট ও বিভাগে প্রথম হন। ছবি: নিউজবাংলা

বুয়েটের ইইইতে ভর্তি কেন হতে চান জানতে চাইলে সিয়াম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি একজন রিসার্চার হতে চাই। ইইইতে রিসার্চের ফিল্ডটা বেশি।’

২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) স্নাতকের ভর্তি পরীক্ষায় প্রকৌশল এবং নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা (ইউআরপি) বিভাগে প্রথম হয়েছেন বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজের ছাত্র মেফতাউল আলম সিয়াম।

এর আগে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা এবং গাজীপুরের ইসলামিক ইউনিভার্সিটি অফ টেকনোলজির (আইইউটি) ভর্তি পরীক্ষায়ও প্রথম হন।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজের ভর্তি পরীক্ষায় সিয়ামের অবস্থান ছিল ৫৯তম। এ ছাড়া তিন প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষায় তৃতীয় হন তিনি।

ধারাবাহিক এ সাফল্যের কারণ, অনুপ্রেরণাসহ প্রাসঙ্গিক বিষয় নিয়ে সিয়ামের সঙ্গে কথা হয় নিউজবাংলার।

নিউজবাংলা: আইইউটি, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ক’ ইউনিট, বুয়েটের একটি বিভাগে আপনি প্রথম হয়েছেন। এ সাফল্যের মূল কারণ কী বলে মনে করেন?

সিয়াম: এইচএসসি থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষার পড়ালেখায় রেগুলার ছিলাম। বেশ কিছু রাইটারের বই ফলো করেছি। এইচএসসি থেকেই বিগত বছরের ভর্তি পরীক্ষায় আসা প্রশ্ন সলভ করার প্র্যাকটিস ছিল, যার কারণে ভর্তি পরীক্ষার পূর্ব সময়ে প্রস্তুতি নিতে অসুবিধা হয়নি।

আগে থেকে বিশ্ববিদ্যালয় লেভেলে ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন নিয়ে ধারণা ছিল। আমি এইচএসসি ফার্স্ট ইয়ার থেকেই নিয়মিত পড়াশোনা করেছি। নিয়মিত পরিশ্রম করাটা এ ক্ষেত্রে কাজে লেগেছে।

নিউজবাংলা: আপনার সাফল্যের পেছনে সবচেয়ে বেশি অনুপ্রেরণা কার?

সিয়াম: অবশ্যই মায়ের ভূমিকা বেশি। ছোটবেলা থেকে অনুপ্রেরণা জোগাত। সে-ই পাশে ছিল। বাবার ভূমিকাও কম নয়।

আব্বু অবসরপ্রাপ্ত এনজিও কর্মকর্তা। আম্মু গ্র্যাজুয়েশন করা। আম্মু প্রাইমারি পর্যন্ত আমাকে গাইড করেছেন। পরবর্তী সময়ে আমি নিজেই নিজেকে সামলে নিয়েছি।

বুয়েটের ইইইতে পড়বেন ৩ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রথম সিয়াম

নিউজবাংলা: কোনো পরীক্ষা দেয়ার আগে প্রথম হওয়ার লক্ষ্য ছিল কী?

সিয়াম: পরীক্ষার হলে ও রকম টার্গেট ছিল না। নিজের বেস্ট আউটপুটটা দেয়ার চেষ্টা করছি। হয়তো আশা ছিল ভালো কিছু করব। আমি ফার্স্ট হব, সে রকম কোনো টার্গেট ছিল না।

নিউজবাংলা: আপনার সামনে অনেকগুলো অপশন। কোথায় ভর্তি হবেন?

সিয়াম: বুয়েটের ইইইতে (ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ)।

নিউজবাংলা: কেন?

সিয়াম: আমি একজন রিসার্চার হতে চাই। ইইইতে রিসার্চের ফিল্ডটা বেশি।

নিউজবাংলা: এসএসসি থেকেই কি এমন স্বপ্ন ছিল?

সিয়াম: এসএসসি পর্যন্ত আমার লক্ষ্য ছিল চিকিৎসক হওয়ার। আমার আম্মুও চেয়েছিলেন আমি চিকিৎসক হই, কিন্তু এইচএসসিতে এসে লক্ষ্য পাল্টে যায় একজন স্যারের কাছ থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে। আমি একজন সফল গবেষক হয়ে দেশ ও জাতির প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতে চাই।

নিউজবাংলা: আপনার সাফল্যে বন্ধু-বান্ধব কিংবা বগুড়ার সরকারি আজিজুল হক কলেজের শিক্ষকদের প্রতিক্রিয়া কী?

সিয়াম: কলেজের শিক্ষকগণ অনেক খুশি। বন্ধুরা অনেক খুশি; তাদের ফ্রেন্ড ফার্স্ট হয়েছে। কলেজের অধ্যক্ষ স্যার আমাকে ডেকে নিয়ে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

নিউজবাংলা: অনেকে বলে থাকেন তুখোড় মেধাবীরাও একসময় অতীতের সাফল্য ভুলে স্রোতে গা ভাসান। আপনি এ ব্যাপারে কতটা সতর্ক?

সিয়াম: আমরা যখন এসএসসি বা এইচএসসি লেভেলে পড়ি, তখন মা-বাবার গাইডলাইনে থাকি। বিশ্ববিদ্যালয়ে সে গাইডলাইন থাকে না। ফলে আমাদের ম্যাচিউরিটির অভাবে বা নতুন জীবনযাপনের সম্পর্কে ধারণা না থাকায় এমনটা হয়ে থাকে। অনেকে খাপ-খাইয়ে নিতে পারে না।

আমি মনে করি এ জায়গাগুলো বুঝে চললে কোনো সমস্যা হবে না।

নিউজবাংলা: আপনার জীবনের চূড়ান্ত লক্ষ্য কী?

সিয়াম: একজন গবেষক হয়ে কাজ করা। ভালো কিছু করা, যা দেশের জন্য গর্বের হয়।

নিউজবাংলা: বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তিচ্ছুদের জন্য আপনার কোনো পরামর্শ আছে?

সিয়াম: পড়াশোনায় সবসময় রেগুলার থাকতে হবে। রেগুলার পড়ব। বুঝে পড়ার চেষ্টা করব। পাশাপাশি বিনোদনও থাকবে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যেন প্রয়োজনের অতিরিক্ত সময় ব্যয় না হয়, সেটা খেয়াল রাখব। পড়াশোনায় যেন কোনো ব্যাঘাত না ঘটে, সেটা সবসময় খেয়াল রাখতে হবে।

নিউজবাংলা: আমাদের সময় দেয়ার জন্য অনেক ধন্যবাদ।

সিয়াম: আপনাকেও ধন্যবাদ।

আরও পড়ুন:
এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ
এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ১৩ নির্দেশনা
যে রুটিনে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা

শেয়ার করুন

ঢাবি হলের ক্যানটিনের দেয়াল ধসে আহত ২

ঢাবি হলের ক্যানটিনের দেয়াল ধসে আহত ২

কবি জসীম উদ্‌দীন হল ক্যানটিনে রড ছাড়া নির্মিত পাঁচ ফুটের দেয়ালটি ধসে পড়ে দুজন আহত হন। ছবি: নিউজবাংলা

ক্যানটিনের ভেতর খাবার বিতরণের কাউন্টারের দুই হাত সামনেই পাঁচ ফুটের দেয়ালটির অবস্থান। ক্যানটিন মালিক মোবারক মজুমদার জানান, ১০ থেকে ১২ বছর আগে দেয়ালটি নির্মাণ করা হয়। টেবিলে বসে ক্যানটিন বয়দের যেন কেউ খাবারের অর্ডার করতে না পারে, সে জন্য খাবারের টেবিল আর খাবার বিতরণের কাউন্টারের মাঝে এটি নির্মাণ করা হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কবি জসীম উদ্‌দীন হল ক্যানটিনে রড ছাড়া নির্মিত পাঁচ ফুটের একটি দেয়াল ধসে পড়েছে। এতে হলের একজন কর্মচারী এবং তার ভাই আহত হয়েছেন।

সোমবার বেলা আড়াইটার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

ঘটনার সময় আহতরা ধসে পড়া দেয়ালটির পাশে থাকা টেবিলে বসে দুপুরের খাবার গ্রহণ করছিলেন। তাদের একজন হলের কাঠমিস্ত্রি শংকর। অন্যজনের নাম জানা যায়নি।

ক্যানটিনের ভেতর খাবার বিতরণের কাউন্টারের দুই হাত সামনেই পাঁচ ফুটের দেয়ালটির অবস্থান। ক্যানটিন মালিক মোবারক মজুমদার জানান, ১০ থেকে ১২ বছর আগে দেয়ালটি নির্মাণ করা হয়।

টেবিলে বসে ক্যানটিন বয়দের যেন কেউ খাবারের অর্ডার করতে না পারে, সে জন্য খাবারের টেবিল আর খাবার বিতরণের কাউন্টারের মাঝে এটি নির্মাণ করা হয়।

মোবারক বলেন, ‘বেলা আড়াইটায় তখন সবাই খাবার খাচ্ছিল। এ সময় হঠাৎ করে দেয়ালটি পড়ে যায়। এটি ডান পাশে পড়ায় তেমন কেউ আহত হয়নি। বাম পাশে হলের কর্মচারীরা ছিল। সেদিকে পড়লে বড় দুর্ঘটনা ঘটতে পারত।

দুর্ঘটনার পর হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ব্দুর রশীদ, সিভিল ৩/১ জোনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মঈন উদ্দীন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

মঈন উদ্দীন বলেন, এটি ছোট একটা বিষয়। দেয়ালটা অনেক পুরোনো হওয়ায় সিমেন্টের বন্ডিং কমে গেছে। ধাক্কা লেগেছে হয়তো, তাই পড়ে গেছে।

রড না থাকার বিষয়টি জানালে তিনি বলেন, ‘এখানে কোনো লোড নেই। তাই এখানে রড থাকার কথাও না। তবে ভবিষ্যতে যদি আমরা এটি আবার নির্মাণ করি, প্রয়োজন হলে আমরা রড দিয়েই এটি নির্মাণ করব।’

হল প্রাধ্যক্ষ আব্দুর রশীদ বলেন, ‘কেন এটি ধসে পড়েছে, কী ত্রুটি ছিল, সেটি আমরা তদন্ত করব। এ জন্য দুই সদস্যের কমিটি গঠন করা হবে।’

আরও পড়ুন:
এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ
এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ১৩ নির্দেশনা
যে রুটিনে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা

শেয়ার করুন

৪১তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা শুরু

৪১তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা শুরু

সকাল ১০টা থেকে একযোগে পরীক্ষা শুরু হয় ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগীয় কেন্দ্রগুলোতে। পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ক্যাডার) নুর আহ্‌মদ নিউজবাংলাকে বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে যেন চাকরি প্রার্থীরা পরীক্ষা দিতে পারেন, সে জন্য সার্বিক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

শুরু হয়েছে ৪১তম বিসিএসের লিখিত পরীক্ষা। আবশ্যিক বিষয়ের এ পরীক্ষা চলবে আগামী ৭ ডিসেম্বর পর্যন্ত।

সোমবার সকাল ১০টা থেকে একযোগে পরীক্ষা শুরু হয় ঢাকা, চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, বরিশাল, সিলেট, রংপুর ও ময়মনসিংহ বিভাগীয় কেন্দ্রগুলোতে।

পিএসসির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক (ক্যাডার) নুর আহ্‌মদ নিউজবাংলাকে বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে যেন চাকরি প্রার্থীরা পরীক্ষা দিতে পারেন, সে জন্য সার্বিক প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

লিখিত পরীক্ষা সংক্রান্ত এক বিজ্ঞপ্তিতে পিএসসি জানায়, পরীক্ষার হলে বই-পুস্তক, সব প্রকার ঘড়ি, মোবাইল ফোন, ক্যালকুলেটর, সব ধরনের ইলেকট্রনিক ডিভাইস, ক্রেডিট কার্ডসদৃশ কোনো ডিভাইস, গয়না, ব্রেসলেট ও ব্যাগ আনা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ। তা ছাড়া পরীক্ষার কেন্দ্রগুলোতে জনসমাগম পরিহারের অনুরোধ করেছে পিএসসি।

এর আগে গত ১৯ মার্চ দেশের আট বিভাগের কেন্দ্রে প্রিলিমিনারি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ৪১তম বিসিএসে আবেদন করেছিলেন ৪ লাখ ৪ হাজার ৫১৩ জন প্রার্থী। এর মধ্যে পরীক্ষায় অংশ নেন ৩ লাখ ৪ হাজার ৯০৭ জন। পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেনি ৯৯ হাজার ৬০৬ জন।

গত ১ আগস্ট প্রকাশিত প্রিলিমিনারির ফলাফলে এতে উত্তীর্ণ হয়েছেন ২১ হাজার ৫৬ জন। উত্তীর্ণরাই লিখিত পরীক্ষায় বসছেন।

সরকারি চাকরিতে বিভিন্ন ক্যাডারে ২ হাজার ১৩৫টি শূন্য পদে প্রার্থী নিয়োগ দিতে গত বছরের ২৭ নভেম্বর ৪১তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে পিএসসি।

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী প্রশাসন ক্যাডারে ৩২৩ জন, পুলিশে ১০০ জন, পররাষ্ট্রে ২৫ জন, আনসারে ২৩ জন, অর্থ মন্ত্রণালয়ে সহকারী মহাহিসাবরক্ষক (নিরীক্ষা ও হিসাব) ২৫ জন, সহকারী কর কমিশনার (কর) ৬০ জন, সহকারী কমিশনার (শুল্ক ও আবগারি) ২৩ জন ও সহকারী নিবন্ধক হিসেবে ৮ জনকে নিয়োগ দেয়া হবে।

শিক্ষা ক্যাডারে নিয়োগ দেয়া হবে ৯১৫ জনকে। বিসিএস স্বাস্থ্যে সহকারী সার্জন হিসেবে ১১০ জন ও সহকারী ডেন্টাল সার্জন হিসেবে ৩০ জন নিয়োগ পাবেন।

পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগে পরিসংখ্যান কর্মকর্তা হিসেবে ১২ জন, রেলপথ মন্ত্রণালয়ে সহকারী যন্ত্র প্রকৌশলী হিসেবে ৪ জন, সহকারী ট্রাফিক সুপারিনটেনডেন্ট হিসেবে ১ জন, সহকারী সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক হিসেবে ১ জন, সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) হিসেবে ২০ জন ও সহকারী প্রকৌশলী (যান্ত্রিক) হিসেবে ৩ জন নিয়োগ পাবেন।

তথ্য মন্ত্রণালয়ে সহকারী পরিচালক বা তথ্য কর্মকর্তা বা গবেষণা কর্মকর্তা হিসেবে ২২ জন, সহকারী পরিচালক (অনুষ্ঠান) হিসেবে ১১ জন, সহকারী বার্তা নিয়ন্ত্রক হিসেবে ৫ জন, সহকারী বেতার প্রকৌশলী হিসেবে ৯ জন, স্থানীয় সরকার বিভাগে বিসিএস জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলে সহকারী প্রকৌশলী হিসেবে ৩৬ জন, সহকারী বন সংরক্ষক হিসেবে ২০ জন নিয়োগ পাবেন।

সহকারী পোস্টমাস্টার জেনারেলে ২ জন, মৎস্যে ১৫ জন, পশুসম্পদে ৭৬ জন, কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা হিসেবে ১৮৩ জন ও বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা হিসেবে ৬ জন, বাণিজ্যে সহকারী নিয়ন্ত্রক হিসেবে ৪ জন নিয়োগ পাবেন।

এ ছাড়া পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা পদে ৪ জন, সহকারী খাদ্য নিয়ন্ত্রক পদে ৬ জন ও সহকারী রক্ষণ প্রকৌশলী পদে ২ জন, বিসিএস গণপূর্তে সহকারী প্রকৌশলী (সিভিল) পদে ৩৬ জন এবং সহকারী প্রকৌশলী (ই/এম) পদে ১৫ জনকে নিয়োগ দেয়া হবে।

আরও পড়ুন:
এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ
এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ১৩ নির্দেশনা
যে রুটিনে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা

শেয়ার করুন

সূর্য সেন হলের টয়লেট, ক্যানটিনে প্রাধ্যক্ষ ‘নিখোঁজের’ বিজ্ঞপ্তি

সূর্য সেন হলের টয়লেট, ক্যানটিনে প্রাধ্যক্ষ ‘নিখোঁজের’ বিজ্ঞপ্তি

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সূর্য সেন হলের বিভিন্ন অংশে এমন বিজ্ঞপ্তি দেখা যায়। ছবি: নিউজবাংলা

বিজ্ঞপ্তিটির কয়েকটি কপি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যানটিন, শ্যাডো ও টিএসসি এলাকায় পড়ে থাকতে দেখা যায়, তবে বিষয়টি হলের কর্মচারীদের নজরে এলে তারা বিভিন্ন দেয়ালে সাঁটানো বিজ্ঞপ্তির কপিগুলো ছিঁড়ে ফেলেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাস্টারদা সূর্য সেন হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মোহাম্মদ মকবুল হোসেন ভূঁইয়াকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না মর্মে একটি বিজ্ঞপ্তি হলটির বিভিন্ন অংশে পাওয়া গেছে।

এতে প্রাধ্যক্ষ মকবুল হোসেন ভূঁইয়ার ছবি জুড়ে দিয়ে লেখা হয়েছে, ‘মিসিং’।

রোববার দুপুরের আগ পর্যন্ত হলটির টয়লেট, ক্যানটিন ও দোকানগুলোর দেয়ালে ‘মিসিং’ লেখা সংবলিত এ বিজ্ঞপ্তি দেখা যায়।

বিজ্ঞপ্তিটির কয়েকটি কপি বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যানটিন, শ্যাডো ও টিএসসি এলাকায় পড়ে থাকতেও দেখা যায়, তবে বিষয়টি হলের কর্মচারীদের নজরে এলে তারা বিভিন্ন দেয়ালে সাঁটানো বিজ্ঞপ্তির কপিগুলো ছিঁড়ে ফেলেন।

কী বলছেন শিক্ষার্থীরা

হলটির আবাসিক শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, প্রাধ্যক্ষ মকবুল হোসেনের প্রতি শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ দীর্ঘদিনের। হলের বিভিন্ন সমস্যার কথা জানালেও কর্ণপাত না করা, দায়িত্বে অমনোযোগিতা, নিয়মিত হলে না আসা, শিক্ষার্থীদের ফোন রিসিভ না করাসহ আরও অনেক অভিযোগ তার বিরুদ্ধে।

শিক্ষার্থীরা বলছেন, এসব কারণেই হয়তো শিক্ষার্থীদের একটি অংশ বিজ্ঞপ্তিটি লাগিয়েছে, তবে তাদের পরিচয় জানা যায়নি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হলটির এক আবাসিক শিক্ষার্থী বলেন, ‘আমাদের হলের গেমস রুমে ভালো কোনো ক্যারম বা টেবিল টেনিসের বোর্ড নেই। অন্যান্য হলে ব্যাডমিন্টনের কোর্ট বসানো হলেও আমাদের হলে এখনও এসবের কিছুই বসানো হয়নি।

‘হল সংসদের পক্ষ থেকে একাধিকবার এসব বিষয় জানানো হলেও প্রাধ্যক্ষ স্যার এসব দাবির প্রতি কর্ণপাতও করেনি।’

আরেক শিক্ষার্থী বলেন, ‘হলের পানির ট্যাংকগুলো অনেক দিন ধরে পরিষ্কার করা হয় না। আমাদের মসজিদে কোনো ইমামই নেই। সম্প্রতি হলের একটি প্রোগ্রামে হল ছাত্রলীগের সাবেকদের ডাকা হলেও হল সংসদের কাউকে আমন্ত্রণই জানানো হয়নি। এ প্রাধ্যক্ষ মূলত দায়িত্ব সমন্বয় করতে পারেন না।’

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অন্য এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘প্রাধ্যক্ষ স্যার নিজ থেকে উদ্যোগ নিয়ে আসলে কিছুই করেন না। হলে প্রাধ্যক্ষ থাকলেও নেই নেই অবস্থা। হলের সিনিয়র অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ অফিসার মোতালেবই (মো. আব্দুল মোতালেব) সব। বিভিন্ন সময়ে শিক্ষার্থীরা প্রাধ্যক্ষ স্যারকে ফোন দিলে তিনি ফোন রিসিভ করা তো দূরের কথা, ব্যাকও করেন না।’

এই শিক্ষার্থী আরও বলেন, “একবার পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে আয়োজিত মোনাজাত শেষে নাশতা দেয়া হয়নি। হল সংসদের নেতৃবৃন্দ স্যারকে ফোন দিয়ে নাশতার কথা জানালে তিনি বলেন, ‘কী বলো! অন্যান্য হলে খাবার দিচ্ছে নাকি?’ অর্থাৎ উনি এতই অমনোযোগী যে, বিভিন্ন উৎসবের দিন যে হলে খাবার দেয়া হয়, সেটিই তিনি জানেন না।”

সূর্য সেন হলের টয়লেট, ক্যানটিনে প্রাধ্যক্ষ ‘নিখোঁজের’ বিজ্ঞপ্তি

‘উনি মিটিংয়ে আছেন’

হল সংসদের সাবেক সহসভাপতি মারিয়াম জামান খান সোহান বলেন, ‘মিসিং বিজ্ঞপ্তিটা আমিও দেখেছি। দেখেই স্যারকে ফোন দিয়েছি। স্যারের সাথে আমার কথা হয়েছে।

‘উনি মিটিংয়ে আছেন; মিসিং হননি, তবে এই বিজ্ঞপ্তিটি কারা লাগিয়েছে আমার জানা নেই।’

হল প্রাধ্যক্ষের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের ক্ষোভ আছে কি না জানতে চাইলে সোহান বলেন, ‘প্রতিটি হলে খেলার জন্য আলাদা জায়গা থাকলেও আমাদের হলে এসবের জন্য আলাদা কোনো জায়গাই নেই। ওয়াশরুম এবং পানির ফিল্টারে সমস্যা। খেলার জন্য ব্যাডমিন্টন কোর্ট বসানোর কথা থাকলেও এখনও বসানো হয়নি।

‘অডিটোরিয়ামে খেলাধুলার কোনো ব্যবস্থা না রাখা, মসজিদের মাইকে সমস্যাসহ আরও অনেক সমস্যা আছে। আমরা এসব দাবি অনেকবার জানিয়েছি, কিন্তু কোনো সমাধান হয়নি।’

নিখোঁজ বিজ্ঞপ্তিসহ সার্বিক বিষয়ে জানতে দুপুরে প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মকবুল হোসেনের হল অফিস কক্ষে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি। সন্ধ্যায় তার মোবাইল ফোনে একাধিকবার কল দেয়ার পাশাপাশি খুদেবার্তা পাঠালেও উত্তর পাওয়া যায়নি।

আরও পড়ুন:
এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ
এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ১৩ নির্দেশনা
যে রুটিনে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা

শেয়ার করুন

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা: মানতে হবে যেসব নির্দেশনা

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা: মানতে হবে যেসব নির্দেশনা

ফাইল ছবি

অনিবার্য কারণে কোন পরীক্ষার্থী নির্ধারিত সময়ের পর পরীক্ষা কেন্দ্রে আসলে রেজিস্ট্রারে নাম, রোল নম্বর, প্রবেশের সময় ও দেরি হবার কারণ উল্লেখ করতে হবে। দেরিতে আসা পরীক্ষার্থীদের তালিকা প্রতিদিন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সংশ্লিষ্ট বোর্ডকে অবহিত করবেন। কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ব্যতীত পরীক্ষা কেন্দ্রে অন্য কেউ মোবাইল ফোন বা মোবাইল ফোনের সুবিধাসহ ঘড়ি, কলম বা অনুমোদিত ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করতে পারবেন না। কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ছবি তোলা ও ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধাবিহীন একটি সাধারণ (ফিচার) ফোন ব্যবহার করতে পারবেন।

চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষার সময় একজনের বেশি অভিভাবক কেন্দ্রে আসতে পারবেন না। পরীক্ষার্থীসহ কেন্দ্রে উপস্থিত সবার জন্য মোবাইল ফোন ব্যবহার নিষিদ্ধ থাকবে। শুধুমাত্র কেন্দ্র সচিব একটি সাধারণ (ফিচার) ফোন ব্যবহার করতে পারবেন। সবাইকেই মানতে হবে করোনাকালীন স্বাস্থ্যবিধি। আর পরীক্ষা শুরুর কমপক্ষে ৩০ মিনিট আগে কেন্দ্রে ঢুকে আসনে বসতে হবে পরীক্ষার্থীকে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের যুগ্মসচিব খালেদা আখতারের সই করা প্রজ্ঞাপনে রোববার এ তথ্য জানা যায়।

যেসব নির্দেশনা মানতে হবে

অনিবার্য কারণে কোন পরীক্ষার্থী নির্ধারিত সময়ের পর পরীক্ষা কেন্দ্রে আসলে রেজিস্ট্রারে নাম, রোল নম্বর, প্রবেশের সময় ও দেরি হবার কারণ উল্লেখ করতে হবে। দেরিতে আসা পরীক্ষার্থীদের তালিকা প্রতিদিন কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সংশ্লিষ্ট বোর্ডকে অবহিত করবেন।

কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ব্যতীত পরীক্ষা কেন্দ্রে অন্য কেউ মোবাইল ফোন বা মোবাইল ফোনের সুবিধাসহ ঘড়ি, কলম বা অনুমোদিত ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করতে পারবেন না।

কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ছবি তোলা ও ইন্টারনেট ব্যবহারের সুবিধাবিহীন একটি সাধারণ (ফিচার) ফোন ব্যবহার করতে পারবেন।

অনুমোদিত ফোন/ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে বিধি অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

ট্রেজারি/থানা/নিরাপত্তা হেফাজত হতে প্রশ্নপত্র গ্রহণ ও পরিবহন কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা, শিক্ষক, কর্মচারীরা কোন ফোন ব্যবহার করতে পারবেন না এবং প্রশ্নপত্র বহন কাজে কালো কাঁচযুক্ত মাইক্রোবাস বা এরূপ কোন যানবাহন ব্যবহার করা যাবে না।

প্রত্যেক কেন্দ্রের জন্য একজন করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট/কর্মকর্তা (ট্যাগ অফিসার) নিয়োগ দিতে হবে। ট্রেজারি/থানা/নিরাপত্তা হেফাজত হতে কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বা তার মনোনীত উপযুক্ত প্রতিনিধি ট্যাগ অফিসারসহ প্রশ্নপত্র গ্রহণ করে পুলিশ প্রহরায় কেন্দ্রে নিয়ে যাবেন।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট/কর্মকর্তা (ট্যাগ অফিসার)-এর উপস্থিতি ব্যতীত প্রশ্ন বের করা যাবে না বা বহন করা যাবে না।

ট্রেজারি/থানা/নিরাপত্তা হেফাজত হতে পরীক্ষার কেন্দ্রে বহুমুখী নির্বাচনী প্রশ্নসহ রচনামূলক/সৃজনশীলের সব সেট প্রশ্নই নিতে হবে।

প্রশ্নের সেট কোড পরীক্ষা শুরুর ২৫ মিনিট পূর্বে জানানো হবে। সে অনুযায়ী নির্ধারিত সেট কোডে পরীক্ষা গ্রহণ করতে হবে।

কেন্দ্রের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ট্যাগ অফিসার), কেন্দ্রের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এবং পুলিশ কর্মকর্তার উপস্থিতি ও স্বাক্ষরে বিধি অনুযায়ী প্রশ্নপত্রের প্যাকেট খুলতে হবে।

পরীক্ষা চলাকালীন এবং পরীক্ষা অনুষ্ঠানের পূর্বে বা পরে পরীক্ষা কেন্দ্রে পরীক্ষার্থী ও পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট কাজে নিয়োজিত ব্যক্তি ছাড়া অন্যদের প্রবেশ সম্পূর্ণরুপে নিষিদ্ধ থাকবে। এ সময়ে পরীক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশকারী অনুমোদিত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।

অনিবার্য কারণবশত কোন পরীক্ষা বিলম্বে শুরু করতে হলে যত মিনিট পরে পরীক্ষা শুরু হবে পরীক্ষার্থীদের সে সময় থেকে যথারীতি প্রশ্নপত্রে উল্লেখিত নির্ধারিত সময় দিতে হবে।

পরীক্ষা কেন্দ্রে ও প্রশ্ন পরিবহনে দায়িত্বপ্রাপ্ত আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী সতর্কতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করবেন।

প্রশ্নপত্র ফাঁস কিংবা পরীক্ষার্থীদের নিকট উত্তর সরবরাহে জড়িত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ও জেলা প্রশাসন কঠোর আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রশ্নপত্র ফাঁস সংক্রান্ত গুজব কিংবা একাজে তৎপর চক্রগুলোর কার্যক্রমের বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবং সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগগুলো নজরদারী জোরদার করবে।

কোভিড-১৯ অতিমারির কারণে শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও পরীক্ষা সংশ্লিষ্ট সবাইকে যথাযথভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা অনুষ্ঠান নিশ্চিত করতে হবে।

এক জনের বেশী অভিভাবক পরীক্ষার্থীর সঙ্গে আসতে পারবে না।

চলতি বছরের এইচএসসি পরীক্ষা ২ ডিসেম্বর শুরু হয়ে ৩০ ডিসেম্বর পর্যন্ত চলবে। এ পরীক্ষা হবে শুধু নৈর্বাচনিক বিষয়ে। অন্যান্য আবশ্যিক বিষয়ে আগের পাবলিক পরীক্ষার সাবজেক্ট ম্যাপিং করে মূল্যায়নের মাধ্যমে নম্বর দেয়া হবে। এবার চতুর্থ বিষয়ের পরীক্ষা নেয়া হবে না।

নির্ধারিত দিনে সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট এবং ২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত পরীক্ষা হবে।

আরও পড়ুন:
এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ
এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ১৩ নির্দেশনা
যে রুটিনে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা

শেয়ার করুন

রাবির ডাইনিং-ক্যান্টিনে কী খাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা

রাবির ডাইনিং-ক্যান্টিনে কী খাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি হলের রান্নাঘরের চিত্র। ছবি: নিউজবাংলা

মুন্নুজান হলের শিক্ষার্থী ফাতেমা খাতুন বলেন, ‘হলের খাবার খুবই বাজে। পুঁই শাক, পেঁপে আর আলু এই তিন ধরনের খাবার প্রতিদিন দিচ্ছে। বাধ্য হয়েই খাচ্ছি। দুই দিনের বেশি খাওয়া যায় না। খেলেই অসুস্থ হতে হয়। আর হলের ডাইনিং ও ক্যান্টিনের একটিও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন নয়, খুবই নোংরা পরিবেশ।’

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আবাসিক হলগুলোর ডাইনিং ও ক্যান্টিনে স্বাস্থ্যসম্মত খাবার দেয়া হচ্ছে না। একদিকে যেমন রান্নাঘরে ধুলাবালি ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, অন্যদিকে মানহীন ও একই খাবার প্রতিদিন দেয়ায় ডাইনিং-ক্যান্টিনে খাবারের প্রতি আগ্রহ হারাচ্ছেন আবাসিক শিক্ষার্থীরা।

তারা বলছেন, অপুষ্টিকর, পচা ও দুপুরের খাবার রাতের খাবারে মিশিয়ে দেয়া হচ্ছে, যা বাধ্য হয়েই খাচ্ছেন তারা। নিম্নমানের খাবার খেয়ে ক্ষুধামন্দা ও চরম স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ছেন তারা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা কেন্দ্রের চিকিৎসকরা বলছেন, এ ধরনের অস্বাস্থ্যকর খাবার খেয়ে শিক্ষার্থীরা আমাশয়, ডায়রিয়া, হ্যাপাটাইটিস, জন্ডিস, এলার্জিসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হচ্ছেন। এ ছাড়া পেটের সমস্যা নিয়ে অনেক শিক্ষার্থী চিকিৎসা নিতে আসছেন।

প্রশাসনের ভাষ্য, বাজারে সব কিছুর দাম ঊর্ধ্বমুখী। তবুও সব সমস্যা সমাধানের জন্য তারা চেষ্টা করছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলো ঘুরে দেখা গেছে, হলের আবাসিক শিক্ষার্থীদের খাবারের জন্য হলের ডাইনিং ও ক্যান্টিনের ওপর ভরসা করতে হয়। সে ডাইনিং-ক্যান্টিনগুলোর রান্নাঘরে ময়লা-আবর্জনায় ভরপুর। যেখানে অস্বাস্থ্যকর ও ধুলাবালির মধ্যে খাবার রান্না ও পরিবেশন করতে দেখা যায়।

রাবির ডাইনিং-ক্যান্টিনে কী খাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা

বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ছাত্রদের জন্য ১১টি ও ছাত্রীদের জন্য ৬টিসহ মোট ১৭টি হল রয়েছে। এসব হলে প্রায় সাড়ে ১৬ হাজার শিক্ষার্থী রয়েছেন। হলের আবাসিক শিক্ষার্থীসহ বাইরে থাকা শিক্ষার্থীদের অনেকেই হলের ডাইনিং-ক্যান্টিনে নিয়মিত খাবার খেয়ে থাকেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের শিক্ষার্থী মেহেদী হাসানের বলেন, ‘হলের ডাইনিংয়ে একই খাবার প্রতিদিন দিচ্ছে। পেঁপে ও আলুর সঙ্গে মাছ অথবা ব্রয়লার মুরগি প্রতিদিন খেতে হচ্ছে; সাথে পানির মতো ডাল।

‘এরপর যদি ক্যান্টিনে খেতে যাই সেখানে দাম অতিরিক্ত নেয়। কিন্তু খাবারের মান তত উন্নত না। মূলত বাধ্য হয়েই খাচ্ছি। মাঝে মধ্যে পেটে সমস্যা হয়, অসুস্থ হই।’

তিনি আনও বলেন, ‘ডাইনিং ও ক্যান্টিন দুইটাতেই ধুলাবালি, ময়লা ও অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ সব সময় দেখা যায়। কয়েকদিন খাবারে মাছি ও পোকামাকড় পেয়েছি, তখন খাবার রেখে চলে আসতে হয়েছে।’

শহীদ জিয়াউর রহমান হলের আবাসিক শিক্ষার্থী আবু হানিফ বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন শিক্ষার্থীদের ভালো স্বাস্থ্য ও সুস্থতা নিয়ে মোটেই চিন্তা করছে না। যদি তারা চিন্তা করত তাহলে হলে এই ধরনের বাজে, অস্বাস্থ্যকর খাবার খেতে হতো না আমাদের।’

এ ছাড়া কর্মচারীদের বিরুদ্ধে দুপুরের খাবার রাতের খাবারে মিশিয়ে দেয়ার অভিযোগ করে মতিহার হলের আবাসিক শিক্ষার্থী জুয়েল মামুন বলেন, ‘কর্মচারীরা কম করে তরকারি দিয়ে দুপুরের খাবার রাতের খাবারে মিশিয়ে দেয়। এটা করে তারা অতিরিক্ত আয়ের চেষ্টা করেন।

‘সেই সাথে হলের রান্নাঘর থাকে ময়লায় পরিপূর্ণ। খাবারে পচা আলু, চালে পাথর, রান্না করার অপরিচ্ছন্ন হাঁড়ি-পাতিল ছাড়াও প্রতিদিন একই পদের খাবারে আমরা খাই।’

মুন্নুজান হলের শিক্ষার্থী ফাতেমা খাতুন বলেন, ‘হলের খাবার খুবই বাজে। পুই শাক, পেঁপে আর আলু এই তিন ধরনের খাবার প্রতিদিন দিচ্ছে। বাধ্য হয়েই খাচ্ছি। দুই দিনের বেশি খাওয়া যায় না। খেলেই অসুস্থ হতে হয়। আর হলের ডাইনিং ও ক্যান্টিনের একটিও পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন নয়, খুবই নোংরা।’

২০ নভেম্বর অস্বাস্থ্যকর ও নিম্নমানের খাবার নিয়ে আন্দোলন করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রোকেয়া হলের ছাত্রীরা।

তাদের অভিযোগ, হলের ডাইনিং ও ক্যান্টিন সব সময় অপরিষ্কার থাকে। খাবারে মশা ও মাছি থাকে; খাবার নিম্নমানের। বারবার এ নিয়ে হল প্রাধ্যক্ষকে লিখিত অভিযোগ করলেও কোনো পরিবর্তন আসেনি। এর কোনো ব্যবস্থা নেয়নি হল কর্তৃপক্ষ।

৫ নভেম্বর হলের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বিরুদ্ধে ছাত্রীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহারের অভিযোগ এনে তাপসী রাবেয়া হলের ছাত্রীরা আন্দোলনে নেমেছিল। সেখানেও খাবারের মান উন্নয়নের দাবি জানিয়েছে তারা।

পেটের পীড়াজনিতে অসুখে প্রতিদিন বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় চিকিৎসা কেন্দ্রে চিকিৎসা নিতে আসা শিক্ষার্থীদের সংখ্যাটাও নেহাত কম নয়।

এ বিষয়ে কথা হয় বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় চিকিৎসা কেন্দ্রের প্রধান চিকিৎসক তবিবুর রহমানের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘এখন করোনার সিম্পটম নিয়ে অনেক শিক্ষার্থীরা চিকিৎসা নিতে আসছেন। তবে পেটের সমস্যা নিয়ে চিকিৎসা নিতে আসা শিক্ষার্থীর সংখ্যাও কম নয়।

‘যাদের বেশিরভাগই ডায়রিয়া, হ্যাপাটাইটিস, জন্ডিস, এলার্জি, ফুড পয়জনিং আক্রান্ত। এ সবের কারণ পঁচা, ময়লাযুক্ত, অস্বাস্থ্যকর ও অপুষ্টিকর খাবার খাওয়া। তারা অরুচি, অনীহা, ও পুষ্টিহীনতায় ভোগে। এতে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যঝুঁকিতে থাকাটা স্বাভাবিক।’

চিকিৎসক আরও বলেন, ‘ডায়রিয়া ও পেটের পীড়াজনিত সমস্যা নিয়ে আসা বেশিরভাগ রোগীকে জিজ্ঞেস করলে দেখা যায়, তারা হল ডাইনিং, ক্যান্টিন ও বাইরের খোলা দোকানে খাবার খেয়েছে। খাবারের মান ঠিক না থাকা ও প্রতিদিন একই খাবার খাওয়া এসবের জন্য দায়ী।’

হল প্রাধ্যক্ষ পরিষদের আহ্বায়ক ও বঙ্গবন্ধু শেখ মজিবুর রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ রওশন জাহিদ বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যকর খাবার দিতে সব প্রভোস্ট আন্তরিক। আমি চাইলেও ডাইনিং-ক্যান্টিনে খাবারের মান উন্নত করতে পারি না।

‘বাজারে চাল, ডালসহ তরিতরকারির কেজি ৪৫-৫০ টাকার নিচে পাওয়া যায় না। দামের এ ঊর্ধ্বগতিতে খাবারের মান বাড়ানোর জন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কোনো ধরনের ভর্তুকি দেয়ার ব্যবস্থা নেই। প্রশাসন শুধু ডাইনিং-ক্যান্টিনের কর্মচারীদের বেতন-ভাতা দিয়ে থাকেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘খাবারে মশা-মাছি পড়ার বিষয়টি আমি জেনেছি। এর জন্য ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। আর কর্মচারীরা রাত-দিন কষ্ট করে রান্না ও শিক্ষার্থীদের খাবার নিয়ে পরিশ্রম করছে, একটু সমস্যা তো হবেই। আমরাও হলে ছিলাম, তখনও এই ধরনের সমস্যা ছিল।’

রাবির ডাইনিং-ক্যান্টিনে কী খাচ্ছেন শিক্ষার্থীরা

ছাত্র-ছাত্রীদের এসব সমস্যা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র উপদেষ্টা তারেক নূর বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের এসব অভিযোগ নিয়ে আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে প্রত্যেক হলের প্রাধ্যক্ষের সঙ্গে প্রশাসন আলোচনায় বসব। এরপর সংশ্লিষ্ট হলের শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলে বিষয়গুলো সমাধান করা হবে।’

তিনি বলেন, ‘দুপুরের তরকারি রাতের তরকারির সঙ্গে মিশিয়ে দেয়া ও খাবারে মশা-মাছি থাকার বিষয়ে হলের কর্মচারী ও সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের সতর্ক করে দেয়া হবে।’

উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সুলতান-উল-ইসলাম বলেন, ‘খাবারের এই অভিযোগগুলো নিয়ে আলোচনা চলছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে বিষয়গুলো সমাধান হবে বলে আশা করছি।’

আরও পড়ুন:
এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ
এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ১৩ নির্দেশনা
যে রুটিনে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা

শেয়ার করুন

স্কুল-কলেজের নতুন এমপিওভুক্তি কবে?

স্কুল-কলেজের নতুন এমপিওভুক্তি কবে?

আগামী মাসে নতুন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তির ঘোষণার আভাস দিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। ফাইল ছবি/নিউজবাংলা

এমপিওভুক্তির যাচাই-বাছাই কমিটির এক সদস্য নিউজবাংলাকে জানান, আগামী মাসে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেয়া হতে পারে। তবে সব কিছু নির্ভর করছে সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্তের ওপর। গতবারের মতো এবারও প্রধানমন্ত্রী নতুন এমপিওভুক্তির ঘোষণা দিতে পারেন।

নতুন অর্থবছরে বেসরকারি নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করার প্রক্রিয়া চলছে। এরই মধ্যে শেষ হয়েছে আবেদন-প্রক্রিয়া। এখন চলছে আবেদন যাচাই-বাছাই। তবে কবে নাগাদ বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করার ঘোষণা দেয়া হবে, এ বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত জানায়নি সরকার।

আগামী মাসে নতুন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেয়া হতে পারে বলে আভাস দিয়েছেন সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

এমপিও হলো মান্থলি পে অর্ডার বা মাসিক বেতন আদেশ, যার মাধ্যমে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও কর্মচারীদের বেতন ওই প্রতিষ্ঠানের বদলে পরিশোধ করে সরকার।

জানতে চাইলে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিও যাচাই-বাছাই কমিটির আহ্বায়ক মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ফৌজিয়া জাফরীন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির জন্য যে আবেদনগুলো পেয়েছি, তা এখন যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে।’

কবে নাগাদ এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেয়া হবে, এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘কাজ চলছে। দিন-তারিখ এখনই বলা সম্ভব নয়।’

তবে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির যাচাই-বাছাই কমিটির এক সদস্য নিউজবাংলাকে বলেন, ‘অনলাইনে আবেদন নেয়ায় কাজ অনেকটাই এগিয়ে রয়েছে। দ্রুতই এ বিষয়ে মিটিং অনুষ্ঠিত হবে।’

তিনি আরও বলেন, ‘আশা করছি, আগামী মাসে বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেয়া হতে পারে। তবে সব কিছু নির্ভর করছে সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্তের ওপর। কেননা গতবারের মতো এবারও প্রধানমন্ত্রী নতুন এমপিওভুক্তির ঘোষণা দিতে পারেন।’

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, সব মিলিয়ে এমপিওভুক্তির জন্য প্রায় ৬ হাজার আবেদন জমা হয়েছে। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক এবং ডিগ্রি স্তরের ৩ হাজার এবং কারিগরি, ভোকেশনাল ও মাদ্রাসা স্তরের ৩ হাজার।

এর আগে গত ৭ নভেম্বর বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির আবেদন যাচাই-বাছাইয়ের জন্য ৯ সদস্যের কমিটি গঠন করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। একই সঙ্গে এই কমিটিকে সহায়তা করতে আরও চার সদস্যের একটি উপকমিটিও গঠন করা হয়।

৯ সদস্যের কমিটির আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (মাধ্যমিক-২) ফৌজিয়া জাফরীন। কমিটিতে আছেন শিক্ষা তথ্য ও পরিসংখ্যান ব্যুরোর (ব্যানবেইস) মহাপরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের কলেজ শাখার যুগ্ম সচিব, বেসরকারি মাধ্যমিক (১) শাখার উপসচিব, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রশাসন শাখার পরিচালক, ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের বাজেট শাখার সিনিয়র সহকারী সচিব, ব্যানবেইসের সিনিয়র সিস্টেম অ্যানালিস্ট এবং বেসরকারি মাধ্যমিক-৩ শাখার উপসচিব।

এ কমিটিকে সহায়তা করবে ব্যানবেইসের সিনিয়র সিস্টেম অ্যানালিস্ট মো. আবু তাহের খানের নেতৃত্বে চার সদস্যের কমিটি। এ কমিটিতে আছেন ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শক, ব্যানবেইসের প্রোগ্রামার এবং মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রোগ্রামার।

গত ৩০ সেপ্টেম্বর বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান (স্কুল ও কলেজ) এমপিওভুক্ত করতে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। বিজ্ঞপ্তিতে ১০ থেকে ৩১ অক্টোবর পর্যন্ত এমপিওভুক্তির জন্য আবেদন করতে বলা হয়।

২০১৯ সালে ২ হাজার ৬২২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করার পর গত বছর আর তা করা হয়নি।

নতুন অর্থবছরের বাজেট বরাদ্দের যে প্রস্তাব শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো হয়েছে, তাতে নতুন প্রতিষ্ঠানের এমপিওভুক্তির জন্য ২৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার কথা বলা হয়েছে। এর মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বিভাগের জন্য ২০০ কোটি টাকা এবং কারিগরি ও মাদ্রাসা শিক্ষা বিভাগের জন্য ৫০ কোটি টাকা।

২০১৯ সালের ২৩ অক্টোবর ২ হাজার ৭৩০টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী। পরে চূড়ান্ত বাছাইয়ে ২ হাজার ৬১৫টি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির ছাড়পত্র পায়। এরপর আবার ২০১৯ সালের ১২ নভেম্বর ছয়টি এবং ১৪ নভেম্বর একটি প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করা হয়।

দেশে এ পর্যন্ত এমপিওভুক্ত হয়েছে এমন বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংখ্যা প্রায় ৩৩ হাজার। আর এমপিওভুক্ত হয়নি এখনও প্রায় ৭ হাজার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার জন্য গত ২৯ মে সংশোধিত এমপিও নীতিমালা প্রকাশ করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সংশোধিত নীতিমালায় এমপিওভুক্তির জন্য তিনটি শর্ত দেয়া হয়েছে।

শিক্ষার্থী ও পরীক্ষার্থীর সংখ্যা এবং পাবলিক পরীক্ষায় পাসের হার- এই তিন বিষয়ে মোট ১০০ নম্বরের মধ্যে শিক্ষার্থীর সংখ্যায় ৩০, পরীক্ষার্থীর সংখ্যায় ৩০ এবং পাসের হারে ৪০ নম্বর রাখা হয়েছে। আগের নীতিমালায় প্রতিষ্ঠানের স্বীকৃতির মেয়াদের ওপর ২৫ নম্বর ছিল, যা সংশোধিত নীতিমালায় বাদ দেয়া হয়েছে।

২০২১ সালের নীতিমালায় কোন ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ন্যূনতম কতজন শিক্ষার্থী থাকতে হবে, তা বেঁধে দেয়া হয়েছে।

নীতিমালা অনুযায়ী, নিম্ন মাধ্যমিকে শহরে ১২০ ও মফস্বলে ৯০, মাধ্যমিকে শহরে ২০০ ও মফস্বলে ১৫০, উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শহরে ৪২০ ও মফস্বলে ৩২০, উচ্চ মাধ্যমিক কলেজে শহরে ২৫০ ও মফস্বলে ২২০ এবং ডিগ্রি কলেজে স্নাতকে শহরে ৪৯০ ও মফস্বলে ৪২৫ শিক্ষার্থী থাকতে হবে। পাসের হার স্তরভেদে ৪৫ থেকে সর্বোচ্চ ৭০ শতাংশ করা হয়েছে।

গত ৩ জুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল জাতীয় সংসদে যে বাজেট প্রস্তাব উপস্থাপন করেন, তাতে শিক্ষা খাতে ৭১ হাজার ৯৫১ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখার কথা বলা হয়েছে। চলতি অর্থবছরে বরাদ্দ ছিল ৬৬ হাজার ৪০০ কোটি টাকা। বরাদ্দ বাড়ানো হয়েছে ৫ হাজার ৫৫১ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন:
এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্রের তালিকা প্রকাশ
এসএসসি পরীক্ষার্থীদের জন্য ১৩ নির্দেশনা
যে রুটিনে এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষা

শেয়ার করুন