ঐতিহ্য ও গৌরবের জগন্নাথ ১৬৪ বছরে

ঐতিহ্য ও গৌরবের জগন্নাথ ১৬৪ বছরে

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়। ফাইল ছবি

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকেই ২০ অক্টোবরকে ‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। গৌরব ও সাফল্যের ১৬ বছরে ক্যাম্পাসের অনেক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও দেশের উচ্চ শিক্ষা প্রসারে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় এক অভূতপূর্ব ভূমিকা পালন করে আসছে। ১৮৫৮ সালে প্রতিষ্ঠিত ব্রাহ্ম স্কুলের পরিবর্তিত রূপই এখনকার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি)। ২০০৫ সালে কলেজ থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে স্বীকৃতি পায় দেশের অন্যতম প্রাচীন এ বিদ্যাপীঠ। বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে সাফল্যের ১৬ বছর পূর্ণ করে ১৭ বছরে পা দিয়েছে জগন্নাথ। পাশাপাশি ১৬৪ বছরে পা দিচ্ছে ঐতিহ্যবাহী এ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পর থেকেই ২০ অক্টোবরকে ‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছেন শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। গৌরব ও সাফল্যের ১৬ বছরে ক্যাম্পাসের অনেক সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও দেশের উচ্চ শিক্ষা প্রসারে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় এক অভূতপূর্ব ভূমিকা পালন করে আসছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির রয়েছে সুদীর্ঘ ইতিহাস।

১৮৫৮ সালে প্রতিষ্ঠিত ব্রাহ্ম স্কুলের পরিবর্তিত রূপই এখনকার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়। ১৮৭২ সালে বালিয়াটির জমিদার কিশোরী লাল রায় তার বাবা জগন্নাথ রায় চৌধুরীর নামে এই বিদ্যাপীঠের নামকরণ করেন। ১৮৮৪ সালে এটি একটি দ্বিতীয় শ্রেণির কলেজ ও ১৯০৮ সালে প্রথম শ্রেণির কলেজে পরিণত হয়।

এই সময় এটিই ছিল ঢাকার উচ্চ শিক্ষার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান। ১৯২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হলে জগন্নাথ কলেজের স্নাতক ও স্নাতকোত্তর কার্যক্রম বন্ধ করে ইন্টারমিডিয়েট কলেজে অবনমিত করা হয়।

ঐতিহ্য ও গৌরবের জগন্নাথ ১৬৪ বছরে

তৎকালীন জগন্নাথ কলেজের ডিগ্রির শিক্ষক, শিক্ষার্থী, গ্রন্থাগারের বইপুস্তক ও জার্নাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে স্থানান্তর করা হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগার সাজাতে তৎকালীন জগন্নাথ কলেজ গ্রন্থাগারের ৫০ ভাগ বই দান করা হয়। পুরান ঢাকার নারী শিক্ষায় বাধা দূর করতে ১৯৪২ সালে সহশিক্ষা চালু করা হয়। ১৯৪৮ সালে তা বন্ধ করে দেয়া হয়।

পরে ১৯৪৯ সালে আবার এই কলেজে স্নাতক পাঠ্যক্রম শুরু হয়। ১৯৬৩ সালে অধ্যক্ষ সাইদুর রহমান পুনরায় সহশিক্ষা চালু করেন। ১৯৬৮ সালে প্রতিষ্ঠানটি সরকারীকরণ করা হলেও পরের বছরেই আবার এটি বেসরকারি মর্যাদা লাভ করে। ২০০৫ সালে মহান জাতীয় সংসদে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় আইন-২০০৫ পাসের মাধ্যমে এটি একটি পরিপূর্ণ পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরিত হয়।

পূর্বতন জগন্নাথ কলেজের শিক্ষার্থীরা জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসেবে গণ্য হন। তাদের নিয়ে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় যাত্রা শুরু করে। ২০০১-০২ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থীরা প্রথম জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শিক্ষা সনদ লাভ করেন। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ২০০৫-২০০৬ শিক্ষাবর্ষ থেকে শিক্ষার্থী ভর্তি হওয়ার সুযোগ পান।

ঐতিহ্য ও গৌরবের জগন্নাথ ১৬৪ বছরে

বিশ্ববিদ্যালয়টি ১১ দশমিক ১১ একর জমির ওপর প্রতিষ্ঠিত। বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয়ে ৬টি অনুষদে ৩৬টি বিভাগ ও ২টি ইনস্টিটিউটে প্রায় ৬৭৯ শিক্ষক, ১৩ হাজার ১৬৫ শিক্ষার্থী, ৬৮৬ কর্মকর্তা-কর্মচারী আছেন।

বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে নতুন হলেও প্রতিষ্ঠানটির রয়েছে সুদীর্ঘ দেড় শ বছরেরও পুরোনো ইতিহাস। বাংলদেশের ভাষা আন্দোলন, শিক্ষা আন্দোলন, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা, ৬ দফা ও ১১ দফার আন্দোলন এবং ঊনসত্তরের গণ-অভ্যুথান ও মুক্তিযুদ্ধসহ প্রতিটি আন্দোলনের ইতিহাসে জগন্নাথের অবদান কখনও অস্বীকার করার মতো নয়।

পাকিস্তান আমলে সরকারবিরোধী আন্দোলন করায় প্রতিষ্ঠানটিকে অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ করে দেয় তৎকালীন সরকার।

ভাষা আন্দোলনে জগন্নাথ

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে একাট্টা হয়ে জগন্নাথের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ বরাবরের মতোই ছিল উল্লেখ করার মতো। ১৯৪৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তান গণপরিষদে ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবিতে সংশোধনী প্রস্তাব বাতিল হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ ও ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ ছাত্রদের মিছিলের মাধ্যমে ঢাকায় প্রথম প্রতিক্রিয়া শুরু হয় ২৬ ফেব্রুয়ারি। এসব প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে ঢাকা শহরের অধিকাংশ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জন করেন। ভাষা আন্দোলনের সময় জগন্নাথ ও মেডিক্যাল কলেজে আলাদা করে সংগ্রাম পরিষদ গড়ে উঠেছিল।

ঐতিহ্য ও গৌরবের জগন্নাথ ১৬৪ বছরে

রাষ্ট্রভাষা আন্দোলনের যৌক্তিকতা বিশ্লেষণ করে ফেব্রুয়ারি মাসে প্রকাশিত প্রথম পুস্তিকা ‘রাষ্ট্রভাষা আন্দোলন’ এবং সাব-টাইটেল ছিল ‘কি ও কেন’? যার লেখক ছিলেন জগন্নাথের সাবেক শিক্ষার্থী অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান।

মাতৃভাষা বাংলার রাষ্ট্রীয় মর্যাদা প্রতিষ্ঠার আন্দোলনে প্রথম শহীদ হন জগন্নাথের ছাত্র রফিক উদ্দিন আহমদ। ৫২ সালে তিনি জগন্নাথের হিসাববিজ্ঞান বিভাগের ছাত্র ছিলেন।

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারিতে প্রথম যে ১০ জন ১৪৪ ধারা ভেঙে ছিলেন তাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন এই প্রতিষ্ঠানের ছাত্র প্রখ্যাত কথাশিল্পী ও চলচ্চিত্র পরিচালক জহির রায়হান।

ভাষাসৈনিক মো. আবদুল জলিল এই প্রতিষ্ঠানে ছাত্র থাকা অবস্থায় ১৯৪৮ সালে ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন। ৫২ সালে জগন্নাথ ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক শফিউদ্দিন আহমদকে ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করায় কারাবরণ করতে হয়।

ভাষাসৈনিক অজিত কুমার গুহ ১৯৪৮ সালের ১৬ আগস্ট জগন্নাথে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের অধ্যাপক হিসেবে যোগ দিয়ে একটানা প্রায় ২০ বছর কর্মরত ছিলেন। ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনের একজন বলিষ্ঠ সংগঠক হিসেবে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

জাতীয় অধ্যাপক ড. সালাহউদ্দীন আহমেদসহ অন্য শিক্ষকরা এখান থেকেই ছাত্রদের ভাষা আন্দোলনে উৎসাহিত করতেন। নুরু মোল্লা ১৯৫০ সালে এই প্রতিষ্ঠানে পড়ার সময় ‘সর্বদলীয় সেন্ট্রাল কমিটি অব অ্যাকশন’ নামে একটি কমিটি হয়। তিনি ওই কমিটির সদস্য ছিলেন।

ঐতিহ্য ও গৌরবের জগন্নাথ ১৬৪ বছরে

জগন্নাথের সাবেক শিক্ষার্থী ও বাংলাদেশের অন্যতম সংবিধানপ্রণেতা এম. আমিরুল ইসলাম ১৯৫২ সালে চলমান ভাষা আন্দোলন ও পাকিস্তান গণপরিষদে লিয়াকত আলী খানের প্রস্তাবিত ‘বেসিক প্রিন্সিপল রিপোর্ট’-এর বিরুদ্ধে আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন।

বঙ্গবন্ধুর অসমাপ্ত আত্মজীবনীতেও ভাষা আন্দোলনে জগন্নাথের অবদানের প্রমাণ পাওয়া যায়। বঙ্গবন্ধু লিখেছেন, ‘‘১৯৪৮ সালের ১১ মার্চকে ‘বাংলাভাষা দাবি’ দিবস ঘোষণা করা হলো। সামান্য কিছুসংখ্যক বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছাড়া শতকরা ৯০ ভাগ ছাত্র এই আন্দোলনে যোগদান করল। জগন্নাথ কলেজ, মিডফোর্ড মেডিক্যাল কলেজ, ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজ বিশেষ করে সক্রিয় অংশগ্রহণ করল।’’

সাবেক এমপি মরহুম আবদুর রব, মৃণাল বারড়ি ও খলিলুর রহমানের মতো জগন্নাথের নাম না জানা অসংখ্য শিক্ষক ও শিক্ষার্থী প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ভাষা আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেন।

’৬২ থেকে ’৬৬-তে জগন্নাথ

১৯৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলনের বীজ মূলত জগন্নাথ ও ঢাকা কলেজ ক্যাম্পাস থেকেই বপন করা হয়। ঐতিহাসিক শিক্ষা আন্দোলনের নেতা হায়দার আকবর খান বলেন, ‘যতদূর মনে পড়ে জগন্নাথ কলেজ ও ঢাকা কলেজের কয়েকজন ছাত্র প্রথমে ছাত্রদের সমস্যার দিকে দৃষ্টিপাত করে কলেজ থেকেই আন্দোলনের সূত্রপাত ঘটায়। পরবর্তীকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রনেতারা এই আন্দোলনটি আঁকড়ে ধরেন।’

তৎকালীন সময়ে বঙ্গবন্ধুর ঘোষিত ছয় দফা আন্দোলনেও জগন্নাথের শিক্ষার্থীরা অংশগ্রহণ করেন। ১৯৬৬ সালে ঐতিহাসিক ছয় দফা ঘোষিত হলে তার সমর্থনে সফল হরতাল পালনে ভূমিকা পালন করে এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। তাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন মুজিব বাহিনীর গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান কাজী আরেফ আহমেদ ও চিত্রনায়ক ফারুক।

৬ দফায় জগন্নাথ

১৭ জানুয়ারি ১৯৬৮ সালে আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গ্রেপ্তার করা হলে জগন্নাথ ছাত্র সংসদের উদ্যোগেই প্রথম প্রতিবাদ সভা হয়। বঙ্গবন্ধু জেল থেকে ছাড়া পেয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে জগন্নাথ কলেজের ছাত্রদের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেছিলেন, ‘ আই অ্যাম অ্যাট দ্যা ডিসপোজল অব দ্যা স্টুডেন্টস অব জগন্নাথ কলেজ’।

১১ দফার অন্যতম দাবি ছিল তৎকালীন জগন্নাথ কলেজসহ সকল প্রাদেশিকীকরণ কলেজসমূহ পূর্বাবস্থায় ফিরিয়ে নেয়া। ১৯৬৯-এর গণ-অভুত্থানে সর্বদলীয় ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের বিরোধিতায় কলেজটি আগের অবস্থায় ফিরিয়ে নিতে সরকার বাধ্য হয়।

মহান মুক্তিযুদ্ধে জগন্নাথ

সর্বশেষ মহান মুক্তিযুদ্ধের ফল হিসেবে মূলত বাংলাদেশ নামের স্বাধীন রাষ্ট্রের জন্ম হয়।

২৫ মার্চ ১৯৭১, পাক বাহিনীর অপারেশন সার্চলাইট মিশনের প্রথম দিকে হামলা চালানো হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হল, ইকবাল হল ও রাজারবাগ পুলিশ লাইনে। শুরু হয় গণহত্যা।

জগন্নাথ কলেজের শিক্ষার্থীরা হল থেকে বের হয়ে পুরান ঢাকার রাজপথে প্রতিবাদ শুরু করেন। পুরান ঢাকা নিজেদের দখলে নিতে ক্যাম্পাসে তৈরি হয় হানাদার বাহিনীর ক্যাম্প।

প্রতিদিন পুরান ঢাকার মুক্তিকামী মানুষ ধরে এনে হত্যা করার পর গণকবর দেয়া হয় এই ক্যাম্পাসে। ৮ জানুয়ারি ১৯৭২ সালে কর্তৃপক্ষ সে সময়কার ছাত্রসংসদ কার্যালয়ের সামনে গণকবর খনন করে সাতটি কঙ্কালসহ ছেঁড়া কাপড়, জুতা ইত্যাদি উদ্ধার করে।

যুদ্ধের পর দৈনিক পূর্বদেশ ও দৈনিক বাংলা পত্রিকায় জগন্নাথে পাক বাহিনীর নির্যাতন ও গণহত্যার ওপর প্রতিবেদন ছাপানো হয়। প্রতিবেদনে ভয়াবহ নারী নির্যাতন ও বিপুলসংখ্যক লোকের কঙ্কাল পাওয়ার খবর প্রকাশ পায়।

মুক্তিযুদ্ধে জগন্নাথের বহু ছাত্র ও শিক্ষক প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে অংশগ্রহণ করেন। যাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন বিখ্যাত নাট্যব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দিন ইউসুফ বাচ্চু, সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকা, গণসংগীতশিল্পী ফকির আলমগীর, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম) ও গণিত বিভাগের তৎকালীন চেয়ারম্যান ড. আবুল কালাম আজাদ।

বিজয় লাভের আগ মুহূর্তে আবুল কালাম আজাদকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয়। যিনি আমাদের মাঝে এখনও ফিরে আসেননি। মুক্তিযুদ্ধে এই প্রতিষ্ঠানের ছাত্র মিরাজ, আজমল, নজরুল ও শাহাবুদ্দিন শহীদ হন।

জগন্নাথের গুচ্ছ ভাস্কর্য

স্বাধীনতাকামী বাঙালির ওপর সংঘটিত অর্বণনীয় নির্যাতন এবং গণহত্যার চিত্র তুলে ধরে শহীদদের স্মরণে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ২০০৮ সালের ৩১ মার্চ নির্মাণ করা হয় মুক্তিযুদ্ধের প্রস্তুতি ও একাত্তরের গণহত্যা ভাস্কর্য। মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাপটে নির্মিত যা দেশের একমাত্র গুচ্ছ ভাস্কর্য।

২০১০ সালে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে সরকারি অনুদান বহাল রাখতে রাজপথে নেমে এসেছিলেন এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। তুমুল আন্দোলনের মুখে জগন্নাথসহ ৩টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সরকারি অনুদান বহাল রাখতে মহান জাতীয় সংসদে বিল পাস করা হয়।

জগন্নাথের কৃতি ব্যক্তিত্ব

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের যেসব কৃতি শিক্ষক ও শিক্ষার্থীর নাম গর্ব করে বলতেই হয় তারা হলেন শিক্ষক হাসান হাফিজুর রহমান, আলাউদ্দিন আল আজাদ, শওকত আলী, আখতারুজ্জামন ইলিয়াস, ইতিহাসবিদ ড. মাহমুদুল হাসান, সাংবাদিক রাহাত খান, আ ন ম বজলুর রহমান, অধ্যাপক সন্তোষ ভট্টাচার্য।

সংগীতশিল্পী সৈয়দ আবদুল হাদী, ড. শামসুজ্জামান খান, হায়াৎ মাহমুদ, বিক্রমপুরের ইতিহাসখ্যাত লেখক শ্রী যোগেন্দ্রনাথ গুপ্ত, গবেষক গোলাম মুরশিদ ও মির্জা হারুন-অর রশিদ, বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমেদ, ভাষা শহীদ রফিক উদ্দিন আহমদও ছিলেন জগন্নাথের কৃতি ব্যক্তিত্ব।

কথাশিল্পী ও চলচ্চিত্র পরিচালক জহির রায়হান, প্রখ্যাত আয়ুর্বেদ শাস্ত্র বিশারদ যোগেশচন্দ্র ঘোষ, শিক্ষাবিদ ড. আনিসুজ্জামান, সাহিত্যিক সৈয়দ শামসুল হক, ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দেয়া সাঁতারু ব্রজেন দাস, বাঙালি কবি প্রেমেন্দ্র মিত্র ও শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিনও ছিলেন বিশ্ববিদ্যায়টির কৃতি শিক্ষার্থী।

লেখক ও দৈনিক কালের কণ্ঠের সদ্য সাবেক সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, সাবেক ডাক ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী রাজিউদ্দীন আহমেদ রাজু, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের বর্তমান মেয়র সাইদ খোকন, অর্থনীতিবিদ ভবতোষ দত্ত, লেখক কাজী মোতাহার হোসেন, সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ আর ইউসুফ, গায়ক ফকির আলমগীর, কিরণ চন্দ্র রায়, হায়দার হোসেন ও বিপ্লব, অভিনেতা এ টি এম শামসুজ্জামান, জাহিদ হাসান, মীর সাব্বির, ফারুক ও প্রবীর মিত্র এবং জাদুকর জুয়েল আইচও জগন্নাথের কৃতি শিক্ষার্থী।

ক্রীড়া ক্ষেত্রে জগন্নাথ

ক্রীড়া ক্ষেত্রেও একসময় খ্যাতি ছিল এই বিদ্যাপীঠের। এ প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা আন্তবিশ্ববিদ্যালয়, আন্তকলেজে ধারাবাহিক চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন ছাড়াও শিক্ষার্থীরা জয় করেছিলেন রোনাল্ডসে শিল্ড, স্যার এ এফ রহমান শিল্ড, ফিরোজ নূন কাপসহ একাধিক টুর্নামেন্ট। এই বিদ্যাপীঠেরই শিক্ষার্থী ব্রজেন দাস ৬ বার ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিয়ে গড়েছেন বিশ্ব রেকর্ড।

তবে দুঃখজনক হলেও সত্য যে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরাই জানেন না ক্রীড়ায় তাদের এই গৌরবের কথা। জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্রীড়াজগৎ আজ অনেকটাই মলিন। ক্রীড়াচর্চার পর্যাপ্ত সুযোগ না থাকায় বড় পর্যায়ে সাফল্য দেখাতে পারছেন না জবিয়ানরা। ২০১৯ এসএ গেমসে বাংলাদেশের হয়ে প্রথম স্বর্ণপদক জয়ী মারজান আকতার প্রিয়া এই ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানেরই শিক্ষার্থী।

বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস

শুধু বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে জবির পরিমাপ করা যাবে না। জবিকে জ্ঞানের সূর্য বলা যায়। যা ১৬০ বছরেরও বেশি সময় ধরে কেবল জ্ঞানের আলো দিয়েই যাচ্ছে। অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় এই যে, দেশকে উজাড় করে দিলেও বলার মতো দেশ জবিকে কিছুই দেয়নি।

জগন্নাথকে এখনও অনাবাসিক বিশ্ববিদ্যালয়ের লজ্জা বহন করতে হয়। অবকাঠামোগত সমস্যা ও বাজেট বৈষম্যের শিকার বিশ্ববিদ্যালয়টি। ২৫ হাজার শিক্ষার্থীর জন্য নেই পর্যাপ্ত পরিবহন ও ক্যান্টিন সুবিধা।

তবে খুশির বিষয় এই যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী গত ৯ অক্টোবর জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য প্রায় ২ হাজার কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন দেয় একনেক। যার মাধ্যমে কেরানীগঞ্জে প্রায় ২০০ একর জায়গার ওপর নির্মিত হবে আধুনিক জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়।

আবাসিক ব্যবস্থা

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের একমাত্র অনাবাসিক বিশ্ববিদ্যালয় ছিল। এই অনাবাসিক বিশ্ববিদ্যালয়ের তকমা ঘুচিয়ে ক্যাম্পাসের বিপরীত পাশে বাংলাবাজারসংলগ্ন ছাত্রীদের জন্য ‘বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হল’ নামে ১৬ তলাবিশিষ্ট ১ হাজার আসনের একটি হলের নির্মাণকাজ শেষ হয়েছে। তবে উদ্বোধন হলেও এখনও চালু হয়নি হলটি।

আবাসন ও যানবাহন সমস্যায় জর্জরিত জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের মনোবল, সাহস ও পরিশ্রমী মানসিকতা অবাক করে অন্য সব বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীদের। ব্যয়বহুল ঢাকা শহরের মেস-বাসা-বাড়িতে কষ্টে দিন পার করা সত্ত্বেও তারা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসকে সর্বদা মাতিয়ে রাখেন।

উচ্চ শিক্ষার জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়

শুধু আন্দোলন আর সংগ্রামেই থেমে নেই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়। শত সীমাবদ্ধতার মধ্যেও এগিয়ে যাচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়টি। একটি আন্তর্জাতিক মানের বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে নিজেদের জানান দিতে নিরলস কাজ করে যাচ্ছেন জবির শিক্ষার্থী ও শিক্ষার্থীরা।

শুরু থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়টির সকল বিভাগে সেমিস্টার পদ্ধতি চালু রয়েছে। অনেক আগেই ইউজিসির প্রতিবেদনে এ-গ্রেড ভুক্ত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা লাভ করেছে এই প্রতিষ্ঠানটি।

বিসিএসসহ সকল প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় নিজেদের শক্ত অবস্থান তৈরিতে সক্ষমতা অর্জন করেছেন এই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। ভর্তি পরীক্ষায় গোপন বার-কোড পদ্ধতি চালু করার মাধমে জালিয়াতি রোধে যুগান্তকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আর ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষ থেকে প্রথমবারের মতো চালু হয় লিখিত ভর্তি পরীক্ষা।

বাংলাদেশের জন্ম ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস ওতপ্রোতভাবে জড়িত। এই ইতিহাস থেকে অবশ্যই আমাদের শিক্ষা নিতে হবে। তবেই জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সার্থকতা লাভ করবে।

আরও পড়ুন:
জগন্নাথে ছাত্রদল-ছাত্রলীগের হাতাহাতি, আহত দুই
গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শুরু রোববার, প্রস্তুত জগন্নাথ
জগন্নাথে করোনার টিকা দেয়া শুরু ২১ অক্টোবর
২১ অক্টোবর জগন্নাথের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের সিদ্ধান্ত
ছুটির দিনেও পরীক্ষা জবিতে

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষের আয়োজনে ‘আক্ষেপ’

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষের আয়োজনে ‘আক্ষেপ’

বুধবার দুপুরে রাষ্ট্রপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য মো. আবদুল হামিদ প্রধান অতিথি হিসেবে উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন। ভুটানের প্রধানমন্ত্রী এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাই লোটে শেরিং উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। ছবি: নিউজবাংলা

বিগত একশ বছরের অগ্রযাত্রায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে অনেক ঘাত প্রতিঘাতের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে। তবে দুঃখজনক হলেও সত্য সে অগ্রযাত্রার গতি নানা কারণে ধরে রাখা সম্ভব হয়নি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হারানো সেই গৌরব ফিরিয়ে আনার কথা আমাদের ভাবতে হবে। তাই শতবর্ষের এই উৎসবের ক্ষণে আমাদের শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়নে জোর দিতে হচ্ছে: শিক্ষামন্ত্রী

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষপূর্তি উপলক্ষ্যে আয়োজিত চার দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য আয়োজনের প্রথম দিন শেষ হয়েছে। আয়োজনে বক্তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের নানা অর্জনের পাশাপাশি কী করা যায়নি, তা নিয়ে আক্ষেপের কথা বলেন।

আগামীর বিশ্বের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় দক্ষ লোকবল তৈরিতে মানসম্মত শিক্ষার ওপর জোর দেন বক্তারা। বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়টিকে শ্রেষ্ঠ হিসেবে গর্ব করতে চান তারা।

বুধবার দুপুরে রাষ্ট্রপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য মো. আবদুল হামিদ প্রধান অতিথি হিসেবে উৎসবের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

১৯২১ সালের ১ জুলাই যাত্রা শুরু করা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ১০০ বছর পূর্ণ করে গত ১ জুলাই। কিন্তু করোনার কারণে শতবর্ষের এই অনুষ্ঠান করা যায়নি সে সময়। মহামারি পরিস্থিতির উন্নতির কারণে পাঁচ মাস পর হচ্ছে এই আয়োজন।

ভুটানের প্রধানমন্ত্রী এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাই লোটে শেরিং উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ভার্চুয়ালি শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষের আয়োজনে ‘আক্ষেপ’

শতবর্ষ ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উৎসবকে কেন্দ্র করে সাজানো হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস। ক্যাম্পাসের কলাভবন, মলচত্বর, টিএসসি, কার্জন হল, বিভিন্ন স্থাপনা বর্ণিলরূপে সাজানো হয়েছে। করা হয়েছে আলোকসজ্জার ব্যবস্থাও।

এছাড়া ‘শতবর্ষের আলোয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়’ নামে আলোক বাক্স ও প্ল্যাকার্ডের রঙিন আবহে উৎসবের আমেজ বইছে ক্যাম্পাসজুড়ে।

চার দিনব্যাপী এই অনুষ্ঠান পুরোটাই হবে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে। এজন্য সেখানেই সাজানো হয়েছে অনুষ্ঠানের মূল মঞ্চ।

মঞ্চের সামনে স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে ১০ হাজার জনের বসার একটা ব্যবস্থা রাখা হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কাউটস টিম, বিএনসসি (নেভি,এয়ার,আর্মি) এবং রেঞ্জারের প্রায় তিন শতাধিক কর্মী অনুষ্ঠানে স্বেচ্ছাসেবকের দায়িত্বে ছিলেন।

বুধবার বেলা সাড়ে এগারোটা থেকে প্রথম দিনের অনুষ্ঠান শুরু হয়। অতিথিদের মঞ্চে আসন গ্রহণ শেষে রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ গণভবন থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হোন। এরপর গাওয়া হয় জাতীয় সংগীত।

সোয়া বারোটায় প্রদর্শন করা হয় শতবর্ষের তথ্যচিত্র প্রদর্শনী। বিশ্ববিদ্যালয়ের টেলিভিশন ফিল্ম অ্যান্ড টেলিভিশন বিভাগ উদ্যোগে এই তথ্যচিত্রটি নির্মিত হয়। সাত মিনিটের এ তথ্যচিত্রে বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্ম, ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ভূমিকাসহ সার্বিক দিক ফুটিয়ে তোলা হয়।

তথ্যচিত্র প্রদর্শন শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগ, নৃত্যকলা বিভাগ এবং দেশের প্রথিতযশা শিল্পীদের সমন্বয়ে তৈরি শতবর্ষের থিম সং পরিবেশন করা হয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতবর্ষের আয়োজনে ‘আক্ষেপ’

সাড়ে বারোটায় রাষ্ট্রপতির পক্ষে বিশেষ স্যুভেনির গ্রহণ করেন উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান। কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মমতাজ উদ্দীন তার হাতে এটি তুলে দেন।

সন্ধ্যা ছয়টা থেকে শুরু হয় প্রথম দিনের সমাপনী পর্ব অর্থাৎ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। রূপা চক্রবর্তী এই পর্বের উপস্থাপনা করেন।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সংগীত বিভাগ, একক আবৃত্তি পরিবেশন করেন আসাদুজ্জামান নূর।

ভারতের শ্রীকান্ত আচার্য ছাড়াও বাংলাদেশের ফরিদা পারভীন, ফাতেমা তুজ জোহরা, সামিনা নবী, সৈয়দ আব্দুল হাদী সংগীত পরিবেশন করেন।

সর্বশেষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃত্যকলা বিভাগের শিক্ষার্থীদের নৃত্য পরিবেশনের মধ্য দিয়ে প্রথম দিনের অনুষ্ঠান শেষ হয়।

কে কী বললেন

শতবর্ষপূর্তি ও স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলেক্ষ্যে প্রকাশিত ৬ টি বই, ফটোগ্রাফি অ্যালবাম ও ওয়েবসাইট উদ্বোধন করেন রাষ্ট্রপতি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ. এস. মাকসুদ কামাল অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন। শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন ভুটানের প্রধানমন্ত্রী এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যালামনাই লোটে শেরিং।

প্রতিটি শিক্ষার্থীকে ডিগ্রি অর্জনের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক মান অর্জনের পরামর্শ দেন রাষ্ট্রপতি আব্দুল হামিদ। এজন্য তিনি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে পাঠ্যক্রম নির্ধারণ ও পাঠদানের ক্ষেত্রে বিশ্বমানের কথা বিবেচনায় রাখার আহ্বান জানান।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘মাতা-পিতা ও অভিভাবকবা অনেক আশা আকাঙ্ক্ষা নিয়ে ছেলে-মেয়েদেরকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠান। তাদের পিছনে দেশ ও জনগণের বিনিয়োগও যথেষ্ট। তাই শিক্ষার্থীদেরকে পরিবার,দেশ ও জনগণের আশা আকাঙ্ক্ষা পূরণে সক্ষমতা অর্জন করতে হবে।’

দুইজন নারী শিক্ষার্থী নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হলেও বর্তমানে ছাত্রীর সংখ্যা ৪০ শতাংশের বেশি। দেশে নারীর ক্ষমতায়নের এটি একটি বিশাল সাফল্য বলেও মনে করেন রাষ্ট্রপতি।

তিনি বলেন, ‘চতুর্থ শিল্প বিপ্লব এগিয়ে চলছে। কয়েক বছর পরই পঞ্চম শিল্প বিপ্লবের ঢেউ বইতে শুরু করবে। সে জন্য প্রস্তুতি নিতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে এ লক্ষ্যে পথিকৃতের ভূমিকা পালন করতে হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি বলেন, বিগত একশ বছরের অগ্রযাত্রায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়কে অনেক ঘাত প্রতিঘাতের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে। তবে দুঃখজনক হলেও সত্য সে অগ্রযাত্রার গতি নানা কারণে ধরে রাখা সম্ভব হয়নি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের হারানো সেই গৌরব ফিরিয়ে আনার কথা আমাদের ভাবতে হবে। তাই শতবর্ষের এই উৎসবের ক্ষণে আমাদের শিক্ষার গুণগত মান উন্নয়নে জোর দিতে হচ্ছে।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, ‘বাজেট দিলে বড় বড় বিল্ডিং হলে যে আপনার গবেষণা, অধ্যাবসায় বাড়বে এমনটা না। এরিস্টটল, সক্রেটিস কিংবা মার্শাল ম্যাকলুহানের বড় বড় অট্টালিকা ছিল না, ঘর-বাড়ি ছিল না। কিন্তু তাদের অধ্যাবসায় ছিল, জ্ঞানের প্রচেষ্টা ছিল। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে যারা আছেন তারাও সেই দিকে আরও একটু মনোযোগী হবেন, যাতে আমরা গর্ব করে বলতে পারি, আমার বিশ্ববিদ্যালয় পৃথিবীর মধ্যে অন্যতম শ্রেষ্ঠ।’

বিকেল চারটা থেকে শুরু হয় প্রথম দিনের অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্ব। এই পর্বের সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক এ এফ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী।

কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সোনালি চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায় সম্মাননীয় অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন। তিনি বলেন, ‘জন্মলগ্ন থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের আত্মিক সম্পর্ক রয়েছে। জ্ঞান-বিজ্ঞান ও মেধা চর্চায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলছে।’

আলোচনায় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, ‘বাংলাদেশ জাতি রাষ্ট্র গঠনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবদান অনন্য। শিক্ষার আলো ছড়িয়ে বাঙালি জাতির উন্নয়নে এ বিশ্ববিদ্যালয় সবসময় পথ দেখিয়েছে। …ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা ভাষা আন্দোলন, বাঙালির মুক্তি সংগ্রাম, স্বৈরাচারবিরোধী আন্দোলন, মহান মুক্তিযুদ্ধ, জনগণের অধিকার আদায়, নারী জাগরণ, নারী শিক্ষা বিস্তারসহ সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন-সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছেন।’

ইংরেজি দৈনিক দ্য ডেইলি অবজারভারের সম্পাদক ইকবাল সোবহান চৌধুরী বলেন, ‘দেশের সকল গণতান্ত্রিক ও রাজনৈতিক আন্দোলনের সূতিকাগার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। এই বিশ্ববিদ্যালয় শুধু জ্ঞান ও শিক্ষা বিস্তারেই ভূমিকা রাখেনি বরং দেশের সার্বিক উন্নয়নে রয়েছে এর অনন্য অবদান।’

সভাপতির ভাষণে ইমেরিটাস অধ্যাপক এ এফ সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ‘পশ্চাদপদ সমাজ পরিবর্তনের এক ঐতিহাসিক প্রয়োজনে ঢাকা বিশ্ববিদালয় প্রতিষ্ঠা করা হয়েছিল। সামাজিকতা, গণতান্ত্রিকতা ও ধর্মনিরপেক্ষতার শিক্ষা এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকেই আমরা শিখেছি।’

আরও পড়ুন:
জগন্নাথে ছাত্রদল-ছাত্রলীগের হাতাহাতি, আহত দুই
গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শুরু রোববার, প্রস্তুত জগন্নাথ
জগন্নাথে করোনার টিকা দেয়া শুরু ২১ অক্টোবর
২১ অক্টোবর জগন্নাথের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের সিদ্ধান্ত
ছুটির দিনেও পরীক্ষা জবিতে

শেয়ার করুন

জগন্নাথে প্রতি আসনের জন্য লড়াই ১৪ জনের

জগন্নাথে প্রতি আসনের জন্য লড়াই ১৪ জনের

গত ১৫ নভেম্বর দুপুর ১২ টা থেকে অনলাইনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু হয়। প্রথমে আবেদনের সময়সীমা ২৫ নভেম্বর পর্যন্ত থাকলেও পরে তা পাঁচ দিন বাড়িয়ে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত করা হয়।

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে (জবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) ও বিবিএ প্রথম বর্ষে ভর্তির আবেদনের সময়সীমা শেষ হয়েছে।

মঙ্গলবার রাত ১১ টা ৫৯ মিনিটে আবেদনের সময় শেষ হয়। তিনটি ইউনিটে ২৭০০ সিটের বিপরীতে প্রায় ৪০ হাজার শিক্ষার্থীর আবেদন পড়েছে। এতে আসনপ্রতি লড়াই করবে ১৪ জনের কিছু বেশি।

আবেদনের সময় শেষ হলেও যারা বিভিন্ন জটিলতায় ফাইনাল সাবমিশন করেননি তারা আবার সাবজেক্ট চয়েজ দিতে এবং যারা আবেদন করলেও টাকা পে করতে পারেন নি তারা পেমেন্ট ও সমস্যা সংশোধনের জন্য ২-১ দিন সুযোগ পাবেন

বুধবার বিকেলে নিউজবাংলাকে এসব তথ্য জানিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের আইটি সেলের পরিচালক অধ্যাপক উজ্জ্বল কুমার আচার্য্য।

তিনি বলেন, 'অনেকেই আবেদন করেছেন দোকান থেকে৷ দোকানদার না বুঝেই নিজের ইচ্ছামতো সাবজেক্ট চয়েজ দিয়ে দেয়। ফলে সাবজেক্ট চয়েজে অনেকেরই ভুল হওয়ার সম্ভাবনা থাকে৷ যারা ফাইনাল সাবমিশন করেননি, আমরা তাদের আগামীকাল অবদি সাবজেক্ট রিভিউ করার সুযোগ দিচ্ছি।

‘অনেকেই আবেদন করেছেন কিন্তু টাকা পে করতে পারেননি। তাদের আবেদন ফি পে করার জন্য একদিন সময় দেয়া হচ্ছে।'

তিনি আরও বলেন, 'জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় সবসময়ই শিক্ষার্থীদের কল্যাণে কাজ করে। আবেদন করতে গিয়ে যেসব অভিযোগ এসেছে সেসব আমরা সমাধান করে তারপর মেধাতালিকা প্রকাশ করব।'

বৃহস্পতিবার ডিনস কমিটির সভা শেষে প্রাথমিক মেধাতালিকা প্রকাশের তারিখ জানানো হবে বলেও জানান তিনি। ভর্তির তারিখসহ বিস্তারিত তথ্যও এদিন সভা শেষে জানানো হবে।

গত ১৫ নভেম্বর দুপুর ১২ টা থেকে অনলাইনে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন শুরু হয়। প্রথমে আবেদনের সময়সীমা ২৫ নভেম্বর পর্যন্ত থাকলেও পরে তা পাঁচ দিন বাড়িয়ে ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত করা হয়।

আরও পড়ুন:
জগন্নাথে ছাত্রদল-ছাত্রলীগের হাতাহাতি, আহত দুই
গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শুরু রোববার, প্রস্তুত জগন্নাথ
জগন্নাথে করোনার টিকা দেয়া শুরু ২১ অক্টোবর
২১ অক্টোবর জগন্নাথের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের সিদ্ধান্ত
ছুটির দিনেও পরীক্ষা জবিতে

শেয়ার করুন

এইচএসসির প্রবেশপত্র না পেয়ে সড়ক অবরোধ

এইচএসসির প্রবেশপত্র না পেয়ে সড়ক অবরোধ

রংপুরে সড়ক অবরোধ করেছে এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা। ছবি: নিউজবাংলা

পরীক্ষার্থী মো. মুকুল বলেন, ‘আমাদের ফরম পূরণ বাবদ ২৬৬ জন শিক্ষার্থীর কাছ থেকে তিন হাজার একশ টাকা নেয়া হয়েছে। আগামীকাল পরীক্ষা। আমরা কলেজে গেছিলাম, প্রিন্সিপল স্যার ছিলেন না। কলেজের দপ্তরি খোকন ছিলেন। আমরা প্রবেশপত্রের কথা বললে কেউ কিছু বলতে পারেনি।’

এইচএসসি পরীক্ষার প্রবেশপত্র না পাওয়ায় সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করছে রংপুরের সাহেবগঞ্জ বিজনেস ম্যানেজমেন্ট কলেজের শিক্ষার্থীরা। তাদের অভিযোগ, বুধবার পরীক্ষা, অথচ প্রবেশপত্র না দিয়ে উধাও হয়ে গেছেন অধ্যক্ষ।

সাহেবগঞ্জ তিন মাথার মোড়ে অবস্থান নিয়ে বুধবার সন্ধ্যা ৭টা থেকে বিক্ষোভ করেছে তারা। এতে রংপুর হারাগাছ ও হারাগাছ সাত মাথা সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে পড়েছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

পরীক্ষার্থী মো. মুকুল বলেন, ‘আমাদের ফরম পূরণ বাবদ ২৬৬ জন শিক্ষার্থীর কাছ থেকে তিন হাজার একশ টাকা নেয়া হয়েছে। আগামীকাল পরীক্ষা। আমরা কলেজে গেছিলাম, প্রিন্সিপল স্যার ছিলেন না। কলেজের দপ্তরি খোকন ছিলেন। আমরা প্রবেশপত্রের কথা বললে কেউ কিছু বলতে পারেনি।’

আরেক ছাত্র শাকিল ইসলাম বলেন, ‘অ্যাডমিট কার্ড না পেলে এবং পরীক্ষা দিতে না পারলে সড়ক ছাড়ব না।’

বিক্ষুব্ধ ছাত্রদের সঙ্গে রাস্তায় দেখা গেছে অভিভাবকদেরও।

এক পরীক্ষার্থীর মা নাজনীন বেগম বলেন, ‘কত কষ্ট করি আমার মেয়ের ফরম পুরণের টাকা দিচি। মেয়ে পরীক্ষা দিতে পারবে না এটা কেমন কথা। ওই প্রিন্সিপল টাকা মারি খাইচে। হামরা ওই প্রিন্সিপলের বিচার চাই।’

আরেক অভিভাবক রানু বালা বলেন, ‘আমার মেয়ের জীবনটা নষ্ট না হয়। আরও এক বছর গেলে জীবন তো শ্যাষ। আমার দুইটা মেয়ে পড়ে। অ্যাডমিট দেউক, মেয়েরা পরীক্ষা দিবে।’

এ বিষয়ে জানতে কলেজের অধ্যক্ষ মো. আইনুলের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত উপপুলিশ কমিশনার সাজ্জাদ হোসেন জানান, পরীক্ষার্থীদের অভিযোগ শুনেছেন। তারা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছেন।

আরও পড়ুন:
জগন্নাথে ছাত্রদল-ছাত্রলীগের হাতাহাতি, আহত দুই
গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শুরু রোববার, প্রস্তুত জগন্নাথ
জগন্নাথে করোনার টিকা দেয়া শুরু ২১ অক্টোবর
২১ অক্টোবর জগন্নাথের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের সিদ্ধান্ত
ছুটির দিনেও পরীক্ষা জবিতে

শেয়ার করুন

৭ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ

৭ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ

কৃষিবিজ্ঞান বিষয়ে ডিগ্রি প্রদানকারী সাতটি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৭ নভেম্বর গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা হয়। সেই ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ হয়েছে।

দেশের সাতটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক প্রথম বর্ষের (২০২০-২১) গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ হয়েছে।

কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির সভাপতি ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. গিয়াসউদ্দিন মিয়া এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, ‘গত ২৭ নভেম্বর সাত কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। ভর্তি কমিটির সভায় বুধবার ফল প্রকাশের সিদ্ধান্ত হয়। দ্বিতীয়বারের মতো কৃষিবিজ্ঞান বিষয়ে ডিগ্রি প্রদানকারী সাতটি সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা হয়।’

এর আগে গত শনিবার বেলা সাড়ে ১১টা থেকে দুপুর সাড়ে ১২টা পর্যন্ত সাতটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে একযোগে ভর্তি পরীক্ষা হয়।

বিশ্ববিদ্যালয়গুলো হচ্ছে: বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি অ্যান্ড অ্যানিম্যাল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়, সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়।

আরও পড়ুন:
জগন্নাথে ছাত্রদল-ছাত্রলীগের হাতাহাতি, আহত দুই
গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শুরু রোববার, প্রস্তুত জগন্নাথ
জগন্নাথে করোনার টিকা দেয়া শুরু ২১ অক্টোবর
২১ অক্টোবর জগন্নাথের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের সিদ্ধান্ত
ছুটির দিনেও পরীক্ষা জবিতে

শেয়ার করুন

দুই বছর পর পরীক্ষায় বসছে এইচএসসির শিক্ষার্থীরা

দুই বছর পর পরীক্ষায় বসছে এইচএসসির শিক্ষার্থীরা

ফাইল ছবি

করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে এবারের এইচএসসি পরীক্ষা অন্যান্য বছরের মতো হবে না। পরীক্ষা হবে শুধু নৈর্বাচনিক বিষয়ে। আর আবশ্যিক বিষয়ে আগের পাবলিক পরীক্ষার সাবজেক্ট ম্যাপিং করে মূল্যায়নের মাধ্যমে নম্বর দেয়া হবে। চতুর্থ বিষয়েরও পরীক্ষা নেয়া হবে না।

করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে শিক্ষাবর্ষ শেষের পর আট মাস দেরিতে আজ শুরু হচ্ছে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। এবার পরীক্ষায় বসছে প্রায় ১৪ লাখ শিক্ষার্থী। পরীক্ষা শেষ হবে ৩০ ডিসেম্বর। এবারের এইচএসসির মাধ্যমে মূলত দুই বছর পর শিক্ষার্থীরা যাচ্ছে পরীক্ষা কেন্দ্রে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, করোনা পরিস্থিতিতে গত বছর এইচএসসি পরীক্ষা হয়নি। বিশেষভাবে মূল্যায়ন করে পরীক্ষার্থীদের উত্তীর্ণ দেখানো হয়। এবারের এইচএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রে হলেও তা অন্যান্য বছরের মতো হবে না। পরীক্ষা হবে শুধু নৈর্বাচনিক বিষয়ে। আর আবশ্যিক বিষয়ে আগের পাবলিক পরীক্ষার সাবজেক্ট ম্যাপিং করে মূল্যায়নের মাধ্যমে নম্বর দেয়া হবে। চতুর্থ বিষয়েরও পরীক্ষা নেয়া হবে না।

পরীক্ষা হবে দুই শিফটে। সকালের শিফটের পরীক্ষা শুরু হবে সকাল ১০টায়, শেষ হবে বেলা ১১টা ৩০ মিনিটে। বৃহস্পতিবার সকালের শিফটে বিজ্ঞান শাখার পদার্থবিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) বিষয়ের পরীক্ষা দিয়ে শুরু হবে চলতি বছরের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা। আর বিকেলের শিফটে পরীক্ষা হবে বেলা ২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত।

পরীক্ষার সার্বিক প্রস্তুতির বিষয়ে জানতে চাইলে আন্তশিক্ষা বোর্ডের সমন্বয়ক ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেন, ‘স্বাস্থ্যবিধি মেনে সুষ্ঠুভাবে পরীক্ষা আয়োজনের জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। সবাইকে স্বাস্থ্যবিধি মানার এবং কোনো ধরনের গুজবে কান না দেয়ার অনুরোধ জানাই।’

সাধারণত প্রতিবছর এপ্রিল মাসে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা শুরু হলেও করোনা মহামারির কারণে এ বছর পাবলিক পরীক্ষা ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে নেয়ার ঘোষণা দেয় সরকার।

এবারের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে ১৩ লাখ ৯৯ হাজার ৬৯০ শিক্ষার্থী। তাদের মধ্যে ছাত্র ৭ লাখ ২৯ হাজার ৭৩৮ জন এবং ছাত্রী ৬ লাখ ৬৯ হাজার ৯৫২ জন।

শিক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, এবার সাধারণ নয়টি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে এইচএসসি পরীক্ষা দেবে ১১ লাখ ৩৮ হাজার ১৭ জন। তাদের মধ্যে ছাত্র ৫ লাখ ৬৩ হাজার ১১৩ জন এবং ছাত্রী ৫ লাখ ৭৪ হাজার ৯০৪ জন।

মাদ্রাসা বোর্ডের অধীনে আলিম পরীক্ষা দেবে ১ লাখ ১৩ হাজার ১৪৪ জন। তাদের মধ্যে ছাত্র ৬১ হাজার ৭৩৮ জন এবং ছাত্রী ৫১ হাজার ৪০৬ জন।

এইচএসসি (বিএম/ভোকেশনাল) পরীক্ষা দেবে ১ লাখ ৪৮ হাজার ৫২৯ জন। তাদের মধ্যে ছাত্র ১ লাখ ৪ হাজার ৮২৭ জন এবং ছাত্রী ৪৩ হাজার ৬৪২ জন।

আন্তশিক্ষা বোর্ড থেকে জানা যায়, এবার এইচএসসি-সমমান পরীক্ষার জন্য ১৫ লাখ ৫৮ হাজার শিক্ষার্থী রেজিস্ট্রেশন করেছিল। সে হিসাবে এ বছর এইচএসসিতে ঝরে পড়েছে ১ লাখ ৫৮ হাজার ৩১০ জন। এবার ৯ হাজার ১৮৩টি প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা ২ হাজার ৬২১টি কেন্দ্রে পরীক্ষা দেবে।

কবে কোন পরীক্ষা

২ ডিসেম্বর: পদার্থবিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) ১ম পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত), সাধারণ বিজ্ঞান এবং খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) ১ম পত্র (রসায়ন), সাধারণ বিজ্ঞান এবং খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) ১ম পত্র (জীববিজ্ঞান), খাদ্য ও পুষ্টি ১ম পত্র, লঘু সংগীত (তত্ত্বীয়) ১ম পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

৫ ডিসেম্বর: যুক্তিবিদ্যা ১ম পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং হিসাববিজ্ঞান ১ম পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

৬ ডিসেম্বর: পদার্থবিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) ২য় পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং সাধারণ বিজ্ঞান এবং খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) ২য় পত্র (খাদ্য ও পুষ্টিবিজ্ঞান), খাদ্য ও পুষ্টি ২য় পত্র, লঘু সংগীত (তত্ত্বীয়) ২য় পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

৭ ডিসেম্বর: যুক্তিবিদ্যা ২য় পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং হিসাববিজ্ঞান ২য় পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

৮ ডিসেম্বর: রসায়ন (তত্বীয়) ১ম পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং শিশু বিকাশ ১ম পত্র, উচ্চাঙ্গ সংগীত (তত্ত্বীয়) ১ম পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

৯ ডিসেম্বর: ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি ১ম পত্র, ইতিহাস ১ম পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং উৎপাদন ব্যবস্থাপনা ও বিপণন ১ম পত্র, ফিন্যান্স ব্যাংকিং ও বিমা ১ম পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

১২ ডিসেম্বর: রসায়ন (তত্ত্বীয়) ২য় পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং শিশু বিকাশ ২য় পত্র, উচ্চাঙ্গ সংগীত (তত্ত্বীয়) ২য় পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

১৩ ডিসেম্বর: ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি ২য় পত্র, ইতিহাস ২য় পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং উৎপাদন ব্যবস্থাপনা ও বিপণন ২য় পত্র, ফিন্যান্স ব্যাংকিং ও বিমা ২য় পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

১৫ ডিসেম্বর: জীববিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) ১ম পত্র, উচ্চতর গণিত ১ম পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং গৃহ ব্যবস্থাপনা ও শিশুবর্ধন এবং পারিবারিক সম্পর্ক (তত্ত্বীয়) ১ম পত্র, গৃহ ব্যবস্থাপনা ও পারিবারিক জীবন ১ম পত্র, ইসলাম শিক্ষা ১ম পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

১৯ ডিসেম্বর: পৌরনীতি ও সুশাসন ১ম পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা ১ম পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

২০ ডিসেম্বর: জীববিজ্ঞান (তত্ত্বীয়) ২য় পত্র, উচ্চতর গণিত ২য় পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং গৃহ ব্যবস্থাপনা ও শিশুবর্ধন এবং পারিবারিক সর্ম্পক (তত্ত্বীয়) ২য় পত্র, গৃহ ব্যবস্থাপনা ও পারিবারিক জীবন ২য় পত্র, ইসলাম শিক্ষা ২য় পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

২১ ডিসেম্বর: পৌরনীতি ও সুশাসন ২য় পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং ব্যবসায় সংগঠন ও ব্যবস্থাপনা ২য় পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

২২ ডিসেম্বর: ভূগোল (তত্ত্বীয়) ১ম পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং আরবি ১ম পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

২৩ ডিসেম্বর: ভূগোল (তত্ত্বীয়) ২য় পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং আরবি ২য় পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

২৭ ডিসেম্বর: অর্থনীতি ১ম পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং ব্যবহারিক শিল্পকলা এবং বস্ত্র ও পোশাক শিল্প (তত্ত্বীয়) ১ম পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

২৮ ডিসেম্বর: সমাজবিজ্ঞান ১ম পত্র, সমাজকর্ম ১ম পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং ক্রীড়া (তত্ত্বীয়) ১ম পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

২৯ ডিসেম্বর: অর্থনীতি ২য় পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং ব্যবহারিক শিল্পকলা এবং বস্ত্র ও পোশাক শিল্প (তত্ত্বীয়) ২য় পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

৩০ ডিসেম্বর: সমাজবিজ্ঞান ২য় পত্র, সমাজকর্ম ২য় পত্র (সকাল ১০টা থেকে ১১টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত) এবং ক্রীড়া (তত্ত্বীয়) ২য় পত্র (২টা থেকে ৩টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত)।

পরীক্ষার্থীদের জন্য নির্দেশনা

শিক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, করোনা মহামারির কারণে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে পরীক্ষা হবে। পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে অবশ্যই পরীক্ষার্থীদের কক্ষে আসন নিতে হবে।

পরীক্ষার সময় হবে ১ ঘণ্টা ৩০ মিনিট। এমসিকিউ ও লিখিত পরীক্ষার মধ্যে কোনো বিরতি থাকবে না। পরীক্ষার দিন সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে শিক্ষার্থীদের উত্তরপত্র এবং ওএমআর শিট বিতরণ করা হবে। সকাল ১০টায় বহুনির্বাচনি প্রশ্নপত্র বিতরণ করা হবে। এরপর ১০টা ১৫ মিনিটে বহুনির্বাচনি উত্তরপত্র সংগ্রহের পাশাপাশি সৃজনশীল প্রশ্নপত্র দেয়া হবে।

বেলা ১টা ৩০ মিনিটে অলিখিত উত্তরপত্র ও বহুনির্বাচনি শিট বিতরণ করা হবে। বেলা ২টায় বহুনির্বাচনি প্রশ্নপত্র বিতরণ ও তার ১৫ মিনিট পর বহুনির্বাচনি উত্তরপত্র সংগ্রহের পাশাপাশি সৃজনশীল প্রশ্নপত্র দেয়া হবে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হলে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। দেড় বছর পর ১২ সেপ্টেম্বর খুলে দেয়া হয়েছে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো। এরপর বিশেষ ব্যবস্থা ও সূচিতে নেয়া হচ্ছে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা।

আরও পড়ুন:
জগন্নাথে ছাত্রদল-ছাত্রলীগের হাতাহাতি, আহত দুই
গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শুরু রোববার, প্রস্তুত জগন্নাথ
জগন্নাথে করোনার টিকা দেয়া শুরু ২১ অক্টোবর
২১ অক্টোবর জগন্নাথের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের সিদ্ধান্ত
ছুটির দিনেও পরীক্ষা জবিতে

শেয়ার করুন

জাবিতে ভর্তি হতে ৪ লাখ টাকায় ‘চুক্তি’, সাক্ষাৎকারের সময় ধরা

জাবিতে ভর্তি হতে ৪ লাখ টাকায় ‘চুক্তি’, সাক্ষাৎকারের সময় ধরা

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা সুদীপ্ত শাহীন জানান, সুনির্দিষ্ট তথ্য পেয়ে কামালকে আটক করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অফিসে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি করার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক (সম্মান) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার জালিয়াতি করে ভর্তি হতে আসা এক শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে।

বুধবার বেলা ১১টার দিকে গাণিতিক ও পদার্থবিষয়ক অনুষদে সাক্ষাৎকার দিতে আসা ওই শিক্ষার্থীকে আটক করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

আটক শিক্ষার্থীর নাম মোস্তফা কামাল উৎস। তার গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইল সদর উপজেলার উত্তর তারুটিয়া গ্রামে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নিরাপত্তা কর্মকর্তা সুদীপ্ত শাহীন জানান, সুনির্দিষ্ট তথ্য পেয়ে কামালকে আটক করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অফিসে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ভর্তি পরীক্ষায় জালিয়াতি করার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

জিজ্ঞাসাবাদে কামাল জানিয়েছেন, তার দুই বন্ধু চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ডি’ ইউনিটে জালিয়াতির মাধ্যমে ভর্তি হয়েছেন। তাদের মাধ্যমে তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী মেহেদী এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ১২ ব্যাচের শিক্ষার্থী শামীম নামে দুজনের খোঁজ পান।

তিনি আরও জানান, দুই বন্ধুর মাধ্যমে পরে মেহেদী ও শামীমের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। তাদের সঙ্গে ৪ লাখ টাকার বিনিময়ে জাবিতে চান্স পাইয়ে দেয়ার চুক্তি হয় তার। পরে তার প্রবেশপত্র নিয়ে আরেকজন জাবির গাণিতিক ও পদার্থবিষয়ক অনুষদের ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন। পরীক্ষায় তার মেধাক্রম আসে ৩০০। পরে চুক্তি অনুযায়ী পুরো টাকা শোধ করেন তিনি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ-উল-হাসান বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে আশুলিয়া থানায় মামলা করার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। পরে পুলিশ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেবে। এ ছাড়া জালিয়াতি চক্রের বাকি সদস্যদের আটক করার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।’

আরও পড়ুন:
জগন্নাথে ছাত্রদল-ছাত্রলীগের হাতাহাতি, আহত দুই
গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শুরু রোববার, প্রস্তুত জগন্নাথ
জগন্নাথে করোনার টিকা দেয়া শুরু ২১ অক্টোবর
২১ অক্টোবর জগন্নাথের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের সিদ্ধান্ত
ছুটির দিনেও পরীক্ষা জবিতে

শেয়ার করুন

এইচএসসি: কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

এইচএসসি: কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

পরীক্ষা কেন্দ্রগুলোর ২০০ গজের মধ্যে পরীক্ষার্থী ছাড়া জনসাধারণের প্রবেশ সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ফাইল ছবি

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) থেকে এইচএসসি/ডিপ্লোমা ইন বিজনেস স্টাডিজ, এইচএসসি (ভোকেশনাল), এইচএসসি (বিএম), ডিপ্লোমা ইন কমার্স ও আলিম পরীক্ষা হতে যাচ্ছে। পরীক্ষা চলাকালীন কেন্দ্রগুলোয় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পরীক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ডিএমপি।

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা চলাকালে কেন্দ্রগুলোর ২০০ গজের মধ্যে পরীক্ষার্থী ছাড়া জনসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এ নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার রাজধানীর সব পরীক্ষা কেন্দ্রে এই কড়াকড়ি আরোপ করা হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) থেকে এইচএসসি/ডিপ্লোমা ইন বিজনেস স্টাডিজ, এইচএসসি (ভোকেশনাল), এইচএসসি (বিএম), ডিপ্লোমা ইন কমার্স ও আলিম পরীক্ষা হতে যাচ্ছে।

পরীক্ষা চলাকালীন কেন্দ্রগুলোয় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পরীক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

নিষেধাজ্ঞায় পরীক্ষা কেন্দ্রগুলোর ২০০ গজের মধ্যে পরীক্ষার্থী ছাড়া জনসাধারণের প্রবেশ সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ আদেশ বৃহস্পতিবার থেকে পরীক্ষার দিনগুলোয় বহাল থাকবে।

আরও পড়ুন:
জগন্নাথে ছাত্রদল-ছাত্রলীগের হাতাহাতি, আহত দুই
গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা শুরু রোববার, প্রস্তুত জগন্নাথ
জগন্নাথে করোনার টিকা দেয়া শুরু ২১ অক্টোবর
২১ অক্টোবর জগন্নাথের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপনের সিদ্ধান্ত
ছুটির দিনেও পরীক্ষা জবিতে

শেয়ার করুন