সরকারকে নড়বড়ে দেখানোই উদ্দেশ্য: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

সরকারকে নড়বড়ে দেখানোই উদ্দেশ্য: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে মঙ্গলবার শেখ রাসেল জাতীয় গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে এক অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী। ছবি: নিউজবাংলা

‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করে সরকার পতনের চেষ্টা করছে ষড়যন্ত্রকারীরা। মন্দির ভাঙা প্রধান উদ্দেশ্য নয়। সরকারের অবস্থান নড়বড়ে করে দেয়াটাই প্রধান উদ্দেশ্য।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন মনে করেন, দেশের বিভিন্ন এলাকায় হিন্দুদের ওপর হামলার উদ্দেশ্য সরকারকে নড়বড়ে দেখানো। এটি সরকার পতনের ষড়যন্ত্রের একটি অংশ।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ছোট ছেলে শেখ রাসেলের জন্মদিন উপলক্ষে মঙ্গলবার শেখ রাসেল জাতীয় গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

দুর্গাপূজা চলাকালে দেশের বিভিন্ন এলাকায় মণ্ডপে হামলা, এরপর রংপুরে হিন্দুপল্লিতে হামলার ঘটনা নিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করে সরকার পতনের চেষ্টা করছে ষড়যন্ত্রকারীরা। মন্দির ভাঙা প্রধান উদ্দেশ্য নয়। সরকারের অবস্থান নড়বড়ে করে দেয়াটাই প্রধান উদ্দেশ্য।’

এই ষড়যন্ত্রে কারা জড়িত, সে বিষয়েও তার ভাবনা তুলে ধরেন জাহিদ মালেকঅ বলেন, ‘একাত্তরে যারা দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র করেছে তারাই এখন দেশকে অস্থিতিশীল করার ষড়যন্ত্র করছে।’

দেশের স্বাস্থ্যসেবা, করোনা মোকাবেলায় সরকারের ভূমিকা নিয়েও কথা বলেন মন্ত্রী। বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ গড়ে তুলতে কাজ করে যাচ্ছে সরকার। বাংলাদেশের কোনো মানুষ যেন স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত না হয়, তা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় নানামুখী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। অন্যান্য দেশের তু্লনায় করোনা প্রতিরোধে এগিয়ে আছে বাংলাদেশ।’

দেশের করোনার টিকা কার্যক্রমের প্রসার বেড়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘ইতিমধ্যে ৬ কোটি টিকা দেয়া হয়ে গেছে। অচিরেই পুরো জনগোষ্ঠীকে টিকার আওতায় আনা হচ্ছে। প্রতি মাসে ৩ কোটি করে টিকা আসছে।

‘শিশুদেরও পরীক্ষামূলক টিকা দেয়া হচ্ছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে তাদেরকেও টিকা কার্যক্রমের আওতায় আনার কাজ শুরু হবে।’

মন্ত্রী জানান, দেশে ৬০ লাখ ফাইজারের টিকা আসছে। এই টিকা স্কুল পড়ুয়া ৩০ লাখ শিশুকে দেয়া যাবে।

আরও পড়ুন:
ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি নয়: প্রধানমন্ত্রী
পীরগঞ্জে ‘উসকানিমূলক স্ট্যাটাস’: ‘কিশোরের’ জবানবন্দি
গোবিন্দগঞ্জে ব্যবসায়ীর দোকানে আগুন, সন্দেহ ‘নাশকতা’
ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দুপাড়া পরিদর্শনে ভারতীয় কূটনীতিক
সাম্প্রদায়িক সংঘাতের প্রতিবাদে জাবি ছাত্রলীগের শোভাযাত্রা

শেয়ার করুন

মন্তব্য

রামপুরায় ছাত্র নিহতের ঘটনায় সড়কমন্ত্রীর নানা প্রশ্ন

রামপুরায় ছাত্র নিহতের ঘটনায় সড়কমন্ত্রীর নানা প্রশ্ন

রাজধানীর রামপুরায় বাসের ধাক্কায় এক শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পর অন্তত আটটি বাস পুড়িয়ে দিয়েছে বিক্ষুব্ধ জনতা। এ সময় ভাঙচুর করা হয়েছে আরও চারটি বাস। বাসের আগুন নেভাচ্ছেন ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা। ছবি: নিউজবাংলা

‘ঘটনার ১২ মিনিটেই নিরাপদ সড়ক চাই পেজ লাইভে গেল কীভাবে? নাকি তারা আগে থেকেই প্রস্তুত ছিল? বাঁশেরকেল্লা ১৫ মিনিটের মধ্যেই সব খবর পেয়ে গেল কীভাবে?  আর বাকি ১০ মিনিটেই ১০টি গাড়িতে আগুন কীভাবে দেয়া হলো? এত জনবল রাত ১১টার পর ঘটনাস্থলে এলো কীভাবে? তা হলে তারা কি আগেই প্রস্তুত ছিল?’

রামপুরায় বাসচাপায় শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনাটি পরিকল্পিত কি না, জাতির বিবেকের কাছে সে প্রশ্ন রেখেছেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। ছাত্র নিহতের ঘটনার ১৫ মিনিটের মধ্যেই ফেসবুক পেজে লাইভ এবং গাড়িতে আগুন ও ভাঙচুরের মধ্যে কোনো সম্পর্ক আছে কি না, সে প্রশ্নও রাখেন তিনি।

বুধবার আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপকমিটি আয়োজিত ‘ফাইভজি: দ্য ফ্রন্টিয়ার টেকনোলজি’ শীর্ষক সেমিনারে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন।

আওয়ামী লীগ নেতা এও বলেন, ছাত্র নিহত হওয়ায় গভীর শোকাহত ও ব্যথিত।

তিনি বলেন, ঘটনাটি ঘটে রাত ১০টা ৪৫ মিনিটে। এর ১২ মিনিট পর ১০টা ৫৭ মিনিটে ‘নিরাপদ সড়ক চাই’ ফেসবুক পেজে সেই স্থান থেকে লাইভ করা হয়। সঙ্গে সঙ্গে ১৭টি বাসে আগুন দেয়া হয় এবং অসংখ্য গাড়ি ভাঙচুর করা হয়।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘রাত ১১টায় জামায়াত পরিচালিত টেলিগ্রাম চ্যানেলে খবরটি প্রকাশিত হয় এবং দুর্ঘটনার স্থান থেকেই সব সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে খবরটি ছড়িয়ে পড়ে। খবরটি ছড়িয়ে পড়ার ১০ মিনিটের মধ্যেই প্রায় ১৫টি বাসে আগুন দেয়াও শেষ হয়। এখন প্রশ্ন হচ্ছে- বিষয়টি আসলেই দুর্ঘটনা কি না?

তিনি বলেন, ‘ঘটনার ১২ মিনিটেই নিরাপদ সড়ক চাই পেজ লাইভে গেল কীভাবে? নাকি তারা আগে থেকেই প্রস্তুত ছিল? বাঁশেরকেল্লা ১৫ মিনিটের মধ্যেই সব খবর পেয়ে গেল কীভাবে? আর বাকি ১০ মিনিটেই ১০টি গাড়িতে আগুন কীভাবে দেয়া হলো?’

এত রাতে দুর্ঘটনার পর পরই ঘটনাস্থলে মানুষের জটলা নিয়েও প্রশ্ন রাখেন সড়কমন্ত্রী। বলেন, ‘এত জনবল রাত ১১টার পর ঘটনাস্থলে এলো কীভাবে? তা হলে তার কি আগেই প্রস্তুত ছিল?’

মন্ত্রী বলেন, ‘সেনাবাহিনী, পুলিশ বা ফায়ার বিগ্রেড এত তাড়াতাড়ি পৌঁছতে পারে না, যত দ্রুত গাড়ি পোড়ানো হয়েছে। এত রাতে অল্প বয়সী শিক্ষার্থীরা কি এত দ্রুত পৌঁছে গেছে?’

তিনি বলেন ‘এমনিতেই সড়ক দুর্ঘটনা নিয়ে আন্দোলন চলছে। যারাই দুর্ঘটনাকবলিত হচ্ছেন তারা সবাই শিক্ষার্থী। গাড়িতে কি ছাত্র ছাড়া অন্য আর যাত্রী থাকে না?‘

এসব প্রশ্ন করে নিজের মূল্যায়ন তুলে ধরে মন্ত্রী বলেন, ‘বিষয়টি মোটেই দুর্ঘটনা নয়।… এ ঘটনায় যারা জড়িত তাদের আইনের আওতায় আনতে সরকার বদ্ধপরিকর।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ২০২৩ সালের মধ্যেই পর্যায়ক্রমে এই ফাইভজি সেবা দেশের অন্যান্য বিভাগীয় শহর, শিল্প প্রতিষ্ঠাননির্ভর এলাকায় বিস্তারের পরিকল্পনা রয়েছে।

আগামী ১২ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এ পরীক্ষামূলক কার্যক্রমের উদ্বোধন করবেন বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি নয়: প্রধানমন্ত্রী
পীরগঞ্জে ‘উসকানিমূলক স্ট্যাটাস’: ‘কিশোরের’ জবানবন্দি
গোবিন্দগঞ্জে ব্যবসায়ীর দোকানে আগুন, সন্দেহ ‘নাশকতা’
ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দুপাড়া পরিদর্শনে ভারতীয় কূটনীতিক
সাম্প্রদায়িক সংঘাতের প্রতিবাদে জাবি ছাত্রলীগের শোভাযাত্রা

শেয়ার করুন

এইচএসসি: কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

এইচএসসি: কেন্দ্রের ২০০ গজের মধ্যে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা

পরীক্ষা কেন্দ্রগুলোর ২০০ গজের মধ্যে পরীক্ষার্থী ছাড়া জনসাধারণের প্রবেশ সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ করা হয়েছে। ফাইল ছবি

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) থেকে এইচএসসি/ডিপ্লোমা ইন বিজনেস স্টাডিজ, এইচএসসি (ভোকেশনাল), এইচএসসি (বিএম), ডিপ্লোমা ইন কমার্স ও আলিম পরীক্ষা হতে যাচ্ছে। পরীক্ষা চলাকালীন কেন্দ্রগুলোয় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পরীক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ডিএমপি।

এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা চলাকালে কেন্দ্রগুলোর ২০০ গজের মধ্যে পরীক্ষার্থী ছাড়া জনসাধারণের প্রবেশ নিষিদ্ধ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এ নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার রাজধানীর সব পরীক্ষা কেন্দ্রে এই কড়াকড়ি আরোপ করা হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার (২ ডিসেম্বর) থেকে এইচএসসি/ডিপ্লোমা ইন বিজনেস স্টাডিজ, এইচএসসি (ভোকেশনাল), এইচএসসি (বিএম), ডিপ্লোমা ইন কমার্স ও আলিম পরীক্ষা হতে যাচ্ছে।

পরীক্ষা চলাকালীন কেন্দ্রগুলোয় সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে পরীক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কিছু নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

নিষেধাজ্ঞায় পরীক্ষা কেন্দ্রগুলোর ২০০ গজের মধ্যে পরীক্ষার্থী ছাড়া জনসাধারণের প্রবেশ সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এ আদেশ বৃহস্পতিবার থেকে পরীক্ষার দিনগুলোয় বহাল থাকবে।

আরও পড়ুন:
ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি নয়: প্রধানমন্ত্রী
পীরগঞ্জে ‘উসকানিমূলক স্ট্যাটাস’: ‘কিশোরের’ জবানবন্দি
গোবিন্দগঞ্জে ব্যবসায়ীর দোকানে আগুন, সন্দেহ ‘নাশকতা’
ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দুপাড়া পরিদর্শনে ভারতীয় কূটনীতিক
সাম্প্রদায়িক সংঘাতের প্রতিবাদে জাবি ছাত্রলীগের শোভাযাত্রা

শেয়ার করুন

দক্ষিণ ঢাকায় রুট পারমিটবিহীন বাসের বিরুদ্ধে অভিযান

দক্ষিণ ঢাকায় রুট পারমিটবিহীন বাসের বিরুদ্ধে অভিযান

রাজধানীতে রুট পারমিটবিহীন বাস চলার অভিযোগ দীর্ঘদিনের। ফাইল ছবি

অভিযানের প্রথম দিন রুট পারমিট ছাড়া চলাচল করা দুটি বাস ডাম্পিং করা হয়। এছাড়া রুট পারমিট ও ট্যাক্স টোকেনের মেয়াদোত্তীর্ণ ছয়টি গাড়িকে ১৪ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

রুট পারমিটবিহীন এবং এক রুটের পারমিট নিয়ে অন্য রুটে চলাচল করা বাসের বিরুদ্ধে যৌথ অভিযান শুরু করেছে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন, বিআরটিএ এবং পুলিশ।

অভিযানের প্রথম দিন বুধবার রুট পারমিট ছাড়া চলাচল করা দুটি বাস ডাম্পিং করা হয়। এছাড়া রুট পারমিট ও ট্যাক্স টোকেনের মেয়াদোত্তীর্ণ ছয়টি গাড়িকে ১৪ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আব্দুস সামাদ সিকদার, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটির (বিআরটিএ) নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ফখরুল ইসলাম এবং ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) সদস্যরা রাজধানীর বঙ্গবন্ধু স্কয়ারে দিনব্যাপী এই অভিযান পরিচালনা করেন।

দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. আবু নাছের নিউজবাংলাকে জানান, অভিযানে রুট পারমিট ছাড়া চলাচলকারী দুটি বাস ডাম্পিং করা হয়েছে।

এছাড়া রুট পারমিট ও ট্যাক্স টোকেন মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় সাভার, শ্রাবণ, হিমাচল, ট্রান্স সিলভা, দোলা ও গ্রীন ঢাকা পরিবহনের একটি করে মোট ছয়টি গাড়ীকে ১৪ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

এ অভিযান বৃহস্পতিবারও চলবে বলে জানা আবু নাছের।

আরও পড়ুন:
ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি নয়: প্রধানমন্ত্রী
পীরগঞ্জে ‘উসকানিমূলক স্ট্যাটাস’: ‘কিশোরের’ জবানবন্দি
গোবিন্দগঞ্জে ব্যবসায়ীর দোকানে আগুন, সন্দেহ ‘নাশকতা’
ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দুপাড়া পরিদর্শনে ভারতীয় কূটনীতিক
সাম্প্রদায়িক সংঘাতের প্রতিবাদে জাবি ছাত্রলীগের শোভাযাত্রা

শেয়ার করুন

বিজয়ের ৫০ বছর: লাল-সবুজের মহোৎসব

বিজয়ের ৫০ বছর: লাল-সবুজের মহোৎসব

বিজয়ের ৫০ বছর উপলক্ষে রাজধানীর হাতিরঝিলে ১৬ দিনব্যাপী লাল-সবুজের মহোৎসবের আয়োজন করে দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই ও ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস

ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই ও ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন আয়োজিত লাল-সবুজের মহোৎসবে ভার্চুয়ালি অংশ নিয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাজধানীর হাতিরঝিলে মহোৎসবের প্রথম দিনে দেশের গান ও নৃত্যে মেতে ওঠেন শিল্পীরা। রাতে আলোক উৎসবের মধ্য দিয়ে প্রথম দিন শেষ হয়।

বিজয়ের ৫০ বছর উপলক্ষে লাল-সবুজের মহোৎসবে ছিল এক ঝাঁক তারকার মিলনমেলা।

বুধবার সন্ধ্যায় রাজধানীতে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই ও ঢাকার দুই সিটি করপোরেশন আয়োজিত ওই মহোৎসবে ভার্চুয়ালি অংশ নিয়ে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজধানীর হাতিরঝিলে মহোৎসবের প্রথম দিনে দেশের গান ও নৃত্যে মেতে ওঠেন শিল্পীরা। রাতে আলোক উৎসবের মধ্য দিয়ে প্রথম দিন শেষ হয়।

লাল-সবুজের মহোৎসবে সংগীত পরিবেশন করে দেশবরেণ্য কণ্ঠ শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা। দেশের গানের তালে নৃত্য পরিবেশন করেন অভিনেতা ফেরদৌস, অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা সাহা মিম, তমা মির্জা, ইমন, নিরব, মেহজাবিনরা।

বিজয়ের ৫০ বছর: লাল-সবুজের মহোৎসব

বিজয়ের মাসে রাজধানীর হাতিরঝিলে ১৬ দিনব্যাপী লাল-সবুজের মহোৎসবের প্রথম দিনে মনোমুগ্ধকর সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস

গানে গানে ছন্দে-আনন্দে সাফল্যগাথা তুলে ধরতে পরিবেশন করা হয় 'এগিয়ে চলো আবার জয় বাংলা বলে' গান। এর সংগীত আয়োজন করেন কৌশিক হোসেন তাপস, কণ্ঠও তার।

এরপর মঞ্চে আসেন অভিনেত্রী বিদ্যা সিনহা মিম। 'দে তালি, বাঙালি, আজ নতুন করে স্বপ্ন দেখার দিন' গানের সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেন তিনি ও তার সহশিল্পীরা।

পিয়ানোর তালে, মঙ্গল প্রদীপের আলোয় রেজওয়ানা চৌধুরী গেয়ে শোনান ‘আনন্দলোকে’। তার সঙ্গে কণ্ঠ মেলান সহশিল্পীরা। এ সময় পরিবেশিত হয় মনোমুগ্ধকর নৃত্য।

বিজয়ের ৫০ বছর: লাল-সবুজের মহোৎসব

অভিনেতা ও আবৃত্তিশিল্পী আজাদ আবুল কালামের কণ্ঠে উঠে আসে ১৯৪৭ সালের দেশ ভাগ থেকে স্বাধীন বাংলার ইতিহাস। মঞ্চের এলইডি পর্দায় দেখানো হয় ইতিহাস থেকে নেয়া বিভিন্ন ছবি।

ইতিহাস বর্ণনা যখন এসে ঠেকে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণে, তখন শুরু হয় পরের পরিবেশনা। 'জয় বাংলা বাংলার জয়' গানের পরিবেশনায় অংশ নেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস।

বিজয়ের ৫০ বছর: লাল-সবুজের মহোৎসব

এর পরেই হয় সমবেত সংগীত। 'নোঙ্গর তোলো তোলো' গানটি কণ্ঠে তোলেন রফিকুল আলম, শাহীন সামাদসহ অগ্রজ-অনুজ কণ্ঠশিল্পীরা। তারা আরও গেয়ে শোনান 'কারার ওই লৌহ কপাট', 'চল চল চল', 'মাগো ভাবনা কেন' গানগুলো।

বিজয়ের ৫০ বছর: লাল-সবুজের মহোৎসব

আবার শুরু হয় ইতিহাস পাঠ। বর্ণনা ১৪ ডিসেম্বরে এসে দাঁড়ালে শুরু হয় স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের শব্দসৈনিকদের পরিবেশনা। নতুন সংগীতায়োজনে তারা গেয়ে শোনান 'রক্তলাল'।

এরপর স্বাধীনতা, বঙ্গবন্ধুর দেশে ফেরা এবং সেই নির্মম ১৫ আগস্ট সবই উঠে আসে ইতিহাসের বর্ণনায়।

বিজয়ের ৫০ বছর: লাল-সবুজের মহোৎসব

শেখ হাসিনার দেশে ফেরা, নতুন করে হাল ধরা- এসব যখন পর্দায় দেখানো হচ্ছে তখন বেজে ওঠে ‘ও আলোর পথযাত্রী’ গানটি। সঙ্গে নৃত্য পরিবেশন করেন অভিনেত্রী পূর্ণিমা ও তার সহশিল্পীরা।

বিজয়ের ৫০ বছর: লাল-সবুজের মহোৎসব

'ও পৃথিবী এবার এসে বাংলাদেশ নাও চিনে'- শেখ হাসিনার নেতৃত্বের দৃঢ়তা প্রকাশ করতে মঞ্চে আসেন তমা মির্জা, ইমন। ‘লাল-সবুজের বিজয় নিশান’ হাতে হাতে ছড়িয়ে দিতে আসেন নিরব, মেহজাবিন।

বিজয়ের ৫০ বছর: লাল-সবুজের মহোৎসব

আরও হয় নৃত্যশিল্পীদের বিশেষ পরিবেশনা। সংগীতশিল্পীরা একদম শেষে সমবেত কণ্ঠে গেয়ে শোনান 'সকল দেশের রানী সেজে আমার জন্মভূমি', 'শোনো একটি মুজিবুরের', 'জয় বাংলা বাংলার জয়' গানগুলো।

'আমরা করব জয়' গান দিয়ে শেষ হয় প্রথম দিনের সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। আর সবশেষে বিজয়ের আনন্দে ছোড়া হয় আতশবাজি।

বিজয়ের ৫০ বছর: লাল-সবুজের মহোৎসব

মহোৎসবের শেষে বুধবার রাত সাড়ে ৯টায় হাতিরঝিল এলাকায় এ উৎসব হয়। সে সময় বাজি ফুটিয়ে বিজয়ের ৫০ বছর উদযাপন করা হয়। সে সময় রাজধানীর আকাশ আতশবাজিতে উজ্জ্বল হয়ে ওঠে। কয়েক মিনিট ধরে চলে এ আতশবাজির বিচ্ছুরণ।

বিজয়ের ৫০ বছর: লাল-সবুজের মহোৎসব

আরও পড়ুন:
ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি নয়: প্রধানমন্ত্রী
পীরগঞ্জে ‘উসকানিমূলক স্ট্যাটাস’: ‘কিশোরের’ জবানবন্দি
গোবিন্দগঞ্জে ব্যবসায়ীর দোকানে আগুন, সন্দেহ ‘নাশকতা’
ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দুপাড়া পরিদর্শনে ভারতীয় কূটনীতিক
সাম্প্রদায়িক সংঘাতের প্রতিবাদে জাবি ছাত্রলীগের শোভাযাত্রা

শেয়ার করুন

মালিবাগে ট্রেনের ধাক্কায় কিশোর নিহত

মালিবাগে ট্রেনের ধাক্কায় কিশোর নিহত

পথচারী আতিকুর রহমান সানি ও জুবায়ের বলেন, ‘মালিবাগ রেলগেটের পাশে দুই ট্রেনের মাঝখানে পড়ে যায় ওই কিশোর। এ সময় ট্রেনের ধাক্কায় সে গুরুতর আহত হয়। ’

রাজধানীর মালিবাগ রেলগেট এলাকায় ট্রেনের ধাক্কায় এক কিশোর নিহত হয়েছে। তার বয়স আনুমানিক ১৬ বছর।

বুধবার রাত ৮টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

পথচারী আতিকুর রহমান সানি ও জুবায়ের বলেন, ‘আমরা মালিবাগ রেলগেটের পাশের পাশে চায়ের দোকানে বসে ছিলাম। রাত ৮টার দিকে কমলাপুর থেকে ছেড়ে আসা একটি ট্রেন ও কমলাপুর অভিমুখী একটি ট্রেনের মাঝখানে পড়ে যায় ওই কিশোর। এ সময় ট্রেনের ধাক্কায় সে গুরুতর আহত হয়। তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিলে চিকিৎসক রাত সোয়া ৯টার দিকে মৃত ঘোষণা করেন।’

ঢামেক হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ (পরিদর্শক) বাচ্চু মিয়া জানান, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক মর্গে রাখা হয়েছে। নিহত কিশোরের নাম-পরিচয় জানা যায়নি। তার পরনে ছিল কালো রঙের জিন্স প্যান্ট ও সাদা ডোরাকাটা টি-শার্ট।

আরও পড়ুন:
ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি নয়: প্রধানমন্ত্রী
পীরগঞ্জে ‘উসকানিমূলক স্ট্যাটাস’: ‘কিশোরের’ জবানবন্দি
গোবিন্দগঞ্জে ব্যবসায়ীর দোকানে আগুন, সন্দেহ ‘নাশকতা’
ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দুপাড়া পরিদর্শনে ভারতীয় কূটনীতিক
সাম্প্রদায়িক সংঘাতের প্রতিবাদে জাবি ছাত্রলীগের শোভাযাত্রা

শেয়ার করুন

‘বোমার তথ্যের সত্যতা পাওয়া যায়নি, এয়ারক্র্যাফট নিরাপদ’

‘বোমার তথ্যের সত্যতা পাওয়া যায়নি, এয়ারক্র্যাফট নিরাপদ’

উড়োজাহাজ,যাত্রী ও লাগেজের কোথাও বোমার অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি, নিশ্চিত করেন শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এসএম তৌহিদুল আহসান। ছবি: নিউজবাংলা

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এসএম তৌহিদুল আহসান বলেন, ‘বোমা থাকার সত্যতা পাওয়া না গেলেও এমন তথ্যকে গুরুত্ব দিয়ে আমরা উড়োজাহাজটি একটি নিরাপদ জায়গায় রেখে তল্লাশি চালাই। যাত্রী, এয়ারক্র্যাফট ও লাগেজের কোথাও বোমার অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি। ফ্লাইটটি নিরাপদ উড্ডয়নের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে।’

রাজধানীর হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মালয়েশিয়ান এয়ারলাইনসের জরুরি অবতরণ করা ফ্লাইটটির কোথাও কোনও বোমা পাওয়া যায়নি।

বুধবার রাত দেড়টায় বিমানবন্দরে জরুরি ব্রিফিংয়ে এ তথ্য নিশ্চিত করেন শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এসএম তৌহিদুল আহসান।

তিনি বলেন, ‘বোমা থাকার সত্যতা পাওয়া না গেলেও এমন তথ্যকে গুরুত্ব দিয়ে আমরা উড়োজাহাজটি একটি নিরাপদ জায়গায় রেখে তল্লাশি চালাই। যাত্রী, এয়ারক্র্যাফট ও লাগেজের কোথাও বোমার অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়া যায়নি।’

ব্রিফিংয়ের শুরুতে বিমানবন্দরের পরিচালক তৌহিদুল আহসান বলেন, ‘তথ্য পাওয়ার পর আমরা বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার সঙ্গে মিটিং করি। যদিও যে নিউজটা পেয়েছিলাম, সেটির সত্যতা মিটিংয়েও পাওয়া যায়নি। যেহেতু তথ্য পেয়েছি বিমানে বোমা থাকার সম্ভাবনা আছে, সে জন্য আমরা যাচাইয়ের সিদ্ধান্ত নিয়েছি। ইস্যুটিকে আমরা হাল্কাভাবে নেয়নি।’

‘বোমার তথ্যের সত্যতা পাওয়া যায়নি, এয়ারক্র্যাফট নিরাপদ’

বুধবার রাত দেড়টায় বিমানবন্দরে জরুরি ব্রিফিংয়ে বক্তব্য দেন শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের পরিচালক গ্রুপ ক্যাপ্টেন এসএম তৌহিদুল আহসান। ছবি: নিউজবাংলা

‘আমরা সমস্ত অপারেশন নেয়ার জন্য প্রস্তুত হই। আমরা তখন ঘোষণা দেই যে আমরা এ্যাকশনে যাবো, আমরা সব তল্লাশি করবো। নিয়ম অনুসারে সে সময় সমস্ত প্রয়োজনীয় কাজ করার জন্য প্রস্তুত হই। তখন বাংলাদেশ বিমান বাহিনীকে খবর দেয়া হয়। অল্প সময়ের মধ্যেই বোমা নিষ্ক্রিয় টিমসহ অন্যান্য টিম হাজির হয়। এ্যায়ারক্রাফট যখন ল্যান্ড করে, তখন অন্যান্য সংস্থ্যা র‌্যাব, এপিবিএন, পুলিশ, সেনাবাহিনী, ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সসহ গোয়েন্দা সংস্থাদের খবর দেয়া হয়।'

তিনি আরও বলেন, ‘তারপর ব্যাপক তল্লাশি চলে। যেভাবে তল্লাশি করার কথা, সেভাবেই হয়। প্রথমে আমরা যাত্রীদের অফলোড করি, এরপর তাদের নিরাপত্তা তল্লাশি করি। কার্গো অফলোড করা হয়। আমরা তল্লাশি করার সময় ডেনজারাস কিছু পাইনি।

‘এটা করতে একটু সময় লাগে। যাত্রীদের একে একে বের করে তাদেরকে নিখুঁতভাবে তল্লাশি করা হয়। এরপর লাগেজ কম্পাটমেন্ট দুটো রয়েছে, একটি সামনে আর একটি পেছনে। আমরা পেছনের কম্পাটমেন্ট থেকে লাগেজ নামিয়ে সেগুলোকে আস্তে আস্তে ট্রলিতে করে নামিয়ে বে’তে পাঠিয়ে দেই। এর পর সামনের কম্পাটমেন্ট থেকেও লাগেজ নামিয়ে স্ক্যান করি। রাত ১টার দিকে কাজ শেষ করি। তার আগে আমরা কেবিন স্ক্যান করি, সেখানেও কিছু পাওয়া যায়নি। বোম ডিস্পোজল টিমের কমান্ডার ছিলেন বিমান বাহিনীর। তিনি ঘোষণা দেন- এখানে কোন বোমার সন্ধান পাওয়া যায়নি, এয়ারক্র্যাফট নিরাপদ।’

‘বোমার তথ্যের সত্যতা পাওয়া যায়নি, এয়ারক্র্যাফট নিরাপদ’

বোমা আতঙ্ক নিয়ে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে মালয়েশিয়ান এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটটি জরুরি অবতরণ করে বুধবার রাত ৯টা ৩৮ মিনিটে।

১৩৫ যাত্রী নিয়ে ফ্লাইটটি মালয়েশিয়ার কুয়ালালামপুর থেকে ঢাকায় জরুরি অবতরণ করার আগেই সংবাদ মেলে যাত্রীর লাগেজে বোমা থাকার। তারই সূত্রে ফ্লাইটটিতে তল্লাশি হয়।

বিমানবন্দর সূত্র জানায়, জরুরি অবতরণের পর কর্তৃপক্ষের নির্দেশে ফ্লাইটটি থেকে যাত্রী নামাতে সব এয়ারলাইনসের বাসগুলো বিমানের পাশে নেয়া হয়। সব যাত্রীকে নিরাপদ অবস্থানে সরিয়ে নিয়ে শুরু হয় তল্লাশি।

রাত সোয়া ১১টায় সেনাবাহিনীর একটি টিম বিমানবন্দরের ভেতরে ঢোকে। নিরাপত্তা তল্লাশিসহ সার্বিক কাজে সহায়তা করছে সেনা টিম।

একই রাতে ল্যান্ডিং গিয়ারে ত্রুটি থাকায় চট্টগ্রামের শাহ আমানত বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইট।

বুধবার রাত ৯টা ৪০ মিনিটে ৪২ যাত্রী নিয়ে সেই বিমানটি অবতরণ করে বলে নিউজবাংলাকে জানান বিমানবন্দরের বিমান বাংলাদেশের সহকারী ম্যানেজার ওমর ফারুক।

আরও পড়ুন:
ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি নয়: প্রধানমন্ত্রী
পীরগঞ্জে ‘উসকানিমূলক স্ট্যাটাস’: ‘কিশোরের’ জবানবন্দি
গোবিন্দগঞ্জে ব্যবসায়ীর দোকানে আগুন, সন্দেহ ‘নাশকতা’
ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দুপাড়া পরিদর্শনে ভারতীয় কূটনীতিক
সাম্প্রদায়িক সংঘাতের প্রতিবাদে জাবি ছাত্রলীগের শোভাযাত্রা

শেয়ার করুন

রাজারবাগ পিরের সম্পত্তির খোঁজে ১২২ প্রতিষ্ঠানে দুদকের চিঠি

রাজারবাগ পিরের সম্পত্তির খোঁজে ১২২ প্রতিষ্ঠানে দুদকের চিঠি

পির মো. দিল্লুর রহমান থাকেন রাজারবাগের এই দরবার শরিফে। ছবি: নিউজবাংলা

দুদকের চিঠি দেয়া ১২২টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে সরকারি-বেসরকারি ৫৬টি ব্যাংক, ৬৪ জেলার রেজিস্ট্রার, বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয় এবং বনশিল্প উন্নয়ন করপোরেশন।

রাজারবাগ শরিফের পির দিল্লুর রহমানের বিরুদ্ধে ধর্মের নামে মানুষকে ধোঁকা জমি দখলের অভিযোগ অনুসন্ধানে ১২২ প্রতিষ্ঠানকে চিঠি দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

দুদক সচিব মু. আনোয়ার হোসেন হাওলাদার বুধবার সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান।

দুদকের চিঠি দেয়া ১২২টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে সরকারি-বেসরকারি ৫৬টি ব্যাংক, ৬৪ জেলার রেজিস্ট্রার, বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয় এবং বনশিল্প উন্নয়ন করপোরেশন।

মু. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘দুদকের অনুসন্ধানে রাজারবাগের পির সাড়া না দিলে আইন অনুযায়ী তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রচলিত আইনে দুদককে অসহযোগিতা করার সুযোগ কারো নেই।’

তিনি জানান, রাজারবাগ পিরের দুর্নীতি অনুসন্ধানে তিন সদস্যের টিম গঠন করা হয়েছে। এই টিম কার্যক্রম শুরু করেছে। তার বিরুদ্ধে জমি দখলের যে অভিযোগ তার মধ্যে বনবিভাগের জমি, খাস জমি আছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পিরকে তলব করা হবে কি না, এমন এক প্রশ্নের জবাবে দুদক সচিব বলেন, ‘অনুসন্ধান টিম রাজারবাগ এলাকা পরিদর্শন করেছে। টিমের কর্মকর্তা যদি মনে করেন, তাহলে তাকে (রাজারবাগ পির) জিজ্ঞাসাবাদ করবেন।’

অভিযোগ অনুসন্ধানে গত ১৬ নভেম্বর দুদকের প্রধান কার্যালয় থেকে সংস্থাটির উপ-পরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে তিন সদস্যদের টিম করা হয়। অন্য সদস্যরা হলেন, সহকারী পরিচালক সাইফুল ইসলাম ও মো. আলতাফ হোসেন। আর তদারককারী কর্মকর্তা হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেন।

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সাত হাজার একর জমি দখল ও অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে রাজারবাগ পির দিল্লুর রহমানের বিরুদ্ধে আদালত তদন্ত করতে দুদককে নির্দেশ দিয়েছে।

অনুসন্ধান টিমকে ৩০ ডিসেম্বরের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে আদালতের নির্দেশনা রয়েছে।

দুদক সচিব বলেন, ‘আশা করছি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে আমরা আদালতে প্রতিবেদন জমা দিতে পারবো। আর না পারলে আদালতের কাছে সময় চাওয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি নয়: প্রধানমন্ত্রী
পীরগঞ্জে ‘উসকানিমূলক স্ট্যাটাস’: ‘কিশোরের’ জবানবন্দি
গোবিন্দগঞ্জে ব্যবসায়ীর দোকানে আগুন, সন্দেহ ‘নাশকতা’
ক্ষতিগ্রস্ত হিন্দুপাড়া পরিদর্শনে ভারতীয় কূটনীতিক
সাম্প্রদায়িক সংঘাতের প্রতিবাদে জাবি ছাত্রলীগের শোভাযাত্রা

শেয়ার করুন