কাশ্মীরে ৬ দিনে ৯ ভারতীয় সেনার মৃত্যু

কাশ্মীরে ৬ দিনে ৯ ভারতীয় সেনার মৃত্যু

কাশ্মিরে ভারতীয় সেনা

পুঞ্চ-রাজৌরির ডেরা কি গালি এলাকার ঘন জঙ্গলে সন্ত্রাসীদের উপস্থিতির খবর পেয়ে সোমবার ভারতীয় সেনাবাহিনী তল্লাশি অভিযান শুরু করেছিল। অভিযানের শুরুতেই একজন জুনিয়র কমিশন্ড অফিসারসহ (জেসিও) পাঁচ জওয়ান নিহত হন।

ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে সন্ত্রাসীদের সঙ্গে সংঘর্ষের পর দেশটির দুই সেনা নিখোঁজ হন। গত বৃহস্পতিবার নিখোঁজের এই ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনার পর সৈন্যদের খুঁজতে সেনাবাহিনী ঘন জঙ্গলে ব্যাপক অভিযান শুরু করেছিল।

নিখোঁজের প্রায় ৪৮ ঘণ্টা পর, শনিবার পুঞ্চ এবং রাজৌরির জঙ্গলে রাইফেলম্যান যোগম্বর সিং এবং রাইফেলম্যান বিক্রম সিং নেগির মরদেহ পাওয়া গেছে।

এই এলাকাতেই গত চার দিন আগে সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অভিযানের সময় ভারতীয় সেনাবাহিনীর আরও পাঁচ সৈনিক নিহত হন।

পুঞ্চ-রাজৌরির ডেরা কি গালি এলাকার ঘন জঙ্গলে সন্ত্রাসীদের উপস্থিতির খবর পেয়ে সোমবার ভারতীয় সেনাবাহিনী তল্লাশি অভিযান শুরু করেছিল। অভিযানের শুরুতেই একজন জুনিয়র কমিশন্ড অফিসারসহ (জেসিও) ওই পাঁচ জওয়ান নিহত হন। পরে সেখানে আরও সৈন্য পাঠানো হয়। এরপর থেকেই ভারতীয় সেনাবাহিনী ওই এলাকায় এক দীর্ঘতম সন্ত্রাসবিরোধী অভিযান শুরু করেছে।

পরে গত শুক্রবার সন্ত্রাসবিরোধী অভিযানে আরও দুজনের মৃত্যু হয়। আগের দিন সন্ধ্যায় নার খাস বন এলাকায় অভিযানের সময় এক জেসিও ও এক সৈনিক গুরুতর আহত হন। এই আঘাতের কারণেই তাদের মৃত্যু হয়।

সোম থেকে শনিবার পর্যন্ত সন্ত্রাসবিরোধী সেনা অভিযানে দেশটির মোট ৯ সেনার মৃত্যু হয়েছে।

তবে শনিবার অভিযানের ষষ্ঠ দিন পর্যন্ত কোনো সন্ত্রাসী নিহত হওয়ার খবর পাওয়া যায়নি। গত কয়েক বছরে এই প্রথম দেশটির সেনাবাহিনীর একক অভিযানে এত সৈন্য নিহত হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকে কর্তৃপক্ষ নিরাপত্তার কারণে পুঞ্চ জম্মু হাইওয়ে বন্ধ রেখেছে।

আরও পড়ুন:
প্রতিরক্ষায় ৭ নতুন সংস্থার ঘোষণা মোদির
দিল্লিতে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২ পাকিস্তানি

শেয়ার করুন

মন্তব্য

বাসে বুধবার থেকে শিক্ষার্থীদের ভাড়া অর্ধেক

বাসে বুধবার থেকে শিক্ষার্থীদের ভাড়া অর্ধেক

মালিক সমিতি থেকে জানানো হয়েছে, ১ ডিসেম্বর থেকে হাফ ভাড়া কার্যকর হবে। হাফ ভাড়ার জন্য শিক্ষার্থীদের ছবিসহ আইডি কার্ড দেখাতে হবে। তবে ছুটির দিনগুলোতে হাফ ভাড়া কার্যকর করা হবে না।

শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়ার দাবি মেনে নিয়েছে বাস মালিক সমিতি। তবে তারা বলেছে, এ সিদ্ধান্ত কেবল কার্যকর হবে ঢাকা মহানগর এলাকায়।

সড়ক পরিবহন মালিক সমিতি মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান।

বাস মালিক সমিতির এই সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, ১ ডিসেম্বর থেকে হাফ ভাড়া কার্যকর হবে। হাফ ভাড়া দেয়ার সময় আইডি কার্ড দেখাতে হবে। ছুটির দিনে হাফ ভাড়া কার্যকর হবে না। হাফ ভাড়া শুধু ঢাকায় সীমাবদ্ধ অন্যান্য জেলার জন্য নয়।

আরও বলা হয়, সকাল ৭ টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত হাফ ভাড়া দিতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। এই সময়ের পর বাসে উঠলে পুরো ভাড়া দিতে হবে।

সম্প্রতি জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর পর পরই বাড়ে বাস ভাড়াও। বাসের মালিকরা তুলে দেয়, শিক্ষার্থীদের হাফ পাস।

এরপর থেকেই বাসে হাফ ভাড়ার দাবিতে আন্দোলন করে আসছিল শিক্ষার্থীরা। এর মধ্যে ঢাকা সিটি করপোরেশনের একটি ময়লার গাড়ির ধাক্কায় নটর ডেম কলেজের এক শিক্ষার্থীর নিহতের পর এ দাবি আরও জোরাল হয়।

এর মধ্যে সোমবার রাতে রাজধানীর রামপুরায় অনাবিল পরিবহনের চাপায় নিহত হন এসএসসি পরীক্ষা দেয়া এক শিক্ষার্থী। এই ঘটনায় রাতেই আটটি বাসে আগুন এবং চারটি বাস ভাঙচুর করা হয়।

বিস্তারিত আসছে…

আরও পড়ুন:
প্রতিরক্ষায় ৭ নতুন সংস্থার ঘোষণা মোদির
দিল্লিতে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২ পাকিস্তানি

শেয়ার করুন

কৃষক হত্যায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, ৩ জনের যাবজ্জীবন

কৃষক হত্যায় একজনের মৃত্যুদণ্ড, ৩ জনের যাবজ্জীবন

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এমদাদুল হক জানান, ২০১৬ সালে সদর উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের মফি শেখ তার ছেলেকে নিয়ে উপবৃত্তির টাকা তুলতে যান। ফেরার পথে তার ওপর হামলা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মফির মৃত্যু হয়।

নড়াইলে কৃষক হত্যা মামলায় একজনকে মৃত্যুদণ্ড ও তিনজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মুন্সী মো. মসিয়ার রহমান মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ রায় দেন।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এমদাদুল হক নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, ২০১৬ সালে সদর উপজেলার ভবানীপুর গ্রামের মফি শেখ তার ছেলেকে নিয়ে উপবৃত্তির টাকা তুলতে যান। ফেরার পথে তার ওপর হামলা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় মফির মৃত্যু হয়।

বিস্তারিত আসছে...

আরও পড়ুন:
প্রতিরক্ষায় ৭ নতুন সংস্থার ঘোষণা মোদির
দিল্লিতে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২ পাকিস্তানি

শেয়ার করুন

রাঙ্গামাটিতে গুলিতে নিহত জেএসএস কমান্ডার

রাঙ্গামাটিতে গুলিতে নিহত জেএসএস কমান্ডার

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) তাপস রঞ্জন ঘোষ জানান, নিহত আবিষ্কার চাকমার বাড়ি বাঘাইছড়ি উপজেলার সারোয়াতলী ইউনিয়নের শিজক এলাকায়। কীভাবে এ ঘটনা ঘটেছে তার বিস্তারিত তথ্য এখনও পাওয়া যায়নি।

রাঙ্গামাটি সদর উপজেলায় সন্তু লারমার নেতৃত্বাধীন পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতির (জেএসএস) এক কমান্ডারকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

উপজেলার বন্দুকভাঙা ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের কিচিং আদাম এলাকায় মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আবিষ্কার চাকমার বাড়ি বাঘাইছড়ি উপজেলার সারোয়াতলী ইউনিয়নের শিজক এলাকায়।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) তাপস রঞ্জন ঘোষ নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘কীভাবে এ ঘটনা ঘটেছে তার বিস্তারিত তথ্য এখনও পাওয়া যায়নি। পুলিশ ঘটনাস্থলে রওনা দিয়েছে। পরে বিস্তারিত জানানো হবে।’

আরও পড়ুন:
প্রতিরক্ষায় ৭ নতুন সংস্থার ঘোষণা মোদির
দিল্লিতে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২ পাকিস্তানি

শেয়ার করুন

রামপুরায় শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, সড়কে জট

রামপুরায় শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, সড়কে জট

বাসচাপায় ছাত্র নিহতের ঘটনায় রামপুরা ব্রিজে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে সড়কে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। ছবি: সাইফুল ইসলাম/নিউজবাংলা

রামপুরা থানা ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আন্দোলন করতে ছাত্ররা রামপুরা ব্রিজে অবস্থান নিয়েছে। আমরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছি। যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ সতর্ক অবস্থানে আছে।’

রাজধানীর রামপুরায় বাসচাপায় শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনার বিচার ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা।

মঙ্গলবার সকালে রামপুরা ব্রিজে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে বনশ্রী আইডিয়াল স্কুলের ছাত্ররা।

তাদের সঙ্গে বিক্ষোভ কর্মসূচিতে যোগ দিতে অন্য প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা জড়ো হচ্ছে। এতে রামপুরা সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের তথ্য নিশ্চিত করেছেন রামপুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম।

রামপুরায় শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ, সড়কে জট
রামপুরায় বাসচাপায় ছাত্র নিহতের বিচার চেয়ে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ। ছবি: সাইফুল ইসলাম/নিউজবাংলা

তিনি বলেন, ‘আন্দোলন করতে ছাত্ররা রামপুরা ব্রিজে অবস্থান নিয়েছে। আমরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করছি। যেকোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ সতর্ক অবস্থানে আছে।’

সোমবার রাতে রামপুরায় বাসের ধাক্কায় এক শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পর অন্তত ৮টি বাস পুড়িয়ে দেয় বিক্ষুব্ধ জনতা। এ সময় ভাঙচুর করা হয়েছে আরও চারটি বাস।

রাজধানীতে বেশ কিছুদিন থেকেই হাফ ভাড়ার দাবিতে বিক্ষোভ করছেন বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা।

এরই মধ্যে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ময়লাবাহী গাড়ির ধাক্কায় নিহত হয় নটর ডেম কলেজের ছাত্র নাঈম। তার নিহতের ঘটনার বিচার দাবিতে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ ও সড়ক অবরোধ করে আসছিলেন।

আরও পড়ুন:
প্রতিরক্ষায় ৭ নতুন সংস্থার ঘোষণা মোদির
দিল্লিতে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২ পাকিস্তানি

শেয়ার করুন

‘যারা আমাকে বিধবা করল আল্লাহ তাদের শাস্তি দেবেন’

‘যারা আমাকে বিধবা করল আল্লাহ তাদের শাস্তি দেবেন’

নির্বাচনি সহিংসতায় নিহত বিজিবি সদস্য রুবেল হোসেন মণ্ডল। ছবি: নিউজবাংলা

রুবেলের ভায়রা ভাই আবদুর রশিদ বলেন, ‘পিটিয়ে মারছে কি না তা বলতে পারব না। তবে বিজিবি যে ভাষ্য এখানে দিছে তা হলো, গলায় গুলি লাগছে। পোস্টমর্টেম বা কাটাকাটি যে করছে আমরা তার প্রমাণ পাইছি। লাশের গলায় কাফনের কাপড় প্যাঁচায়ে রাখা ছিল।’

বাবা, মা, স্ত্রী আর দুই সন্তান নিয়ে ছিল রুবেল হোসেন মণ্ডলের সংসার। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন শেষে সহিংসতায় রুবেলের মৃত্যু মেনে নিতে পারছেন না কেউই। পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম মানুষটিকে হারিয়ে বাকি সদস্যরা এখন দিশেহারা।

২০০৩ সালের ডিসেম্বরে বিজিবিতে যোগ দেন রুবেল। নীলফামারী-৫৬ বিজিবির ল্যান্স নায়েক রুবেলের বাড়ি গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার শালমারা ইউনিয়নের বেইগুনি গ্রামে।

গ্রামের বাড়িতেই থাকেন কৃষক বাবা নজরুল ইসলাম, মা রুলি বেগম, স্ত্রী জেসমিন বেগম এবং দুই সন্তান রাফিহুর রহমান ও রাফিয়া আকতার রিয়া।

২৮ নভেম্বর নীলফামারীর কিশোরগঞ্জের গাড়াগ্রাম ইউপি নির্বাচনের ফল ঘোষণা শেষে পশ্চিম দলিরাম মাঝাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে জাতীয় পার্টির পরাজিত প্রার্থী ও বর্তমান চেয়ারম্যান মারুফ হোসেন অন্তিকের সমর্থকরা হামলা চালায়। হামলায় রুবেল নিহত হন বলে অভিযোগ ওঠে।

মোবাইলে কথা হয় রুবেলের স্ত্রী জেসমিন বেগমের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘কীভাবে সে মারা গেল এখনও জানতে পারি নাই। কেউ বলে গুলিতে মরছে। কেউ বলে ডাংগে (পিটিয়ে) মারছে।

‘বিজিবির সদস্যরা বাড়িত লাশ আনছে। সন্ধ্যায় পারিবারিক কবরস্থানে মাটি হইছে। এখন আমার ছেলেমেয়েকে দেখবে কে? আমরা চলব কীভাবে?’

এতটুকু বলার পর কিছুক্ষণ থেমে জেসমিন আবার নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমি আমার স্বামীর হত্যাকারীদের বিচার চাই। যারা আমাকে বিধবা করল আল্লাহ তাদের শাস্তি দেবেন।’

রুবেলের ১২ বছরের ছেলে রাফিহুর স্থানীয় একটি স্কুলে ষষ্ঠ শ্রেণিতে পড়ে আর ১০ বছরের মেয়ে রিয়া পড়ে পঞ্চম শ্রেণিতে।

বাবার মৃত্যুর খবর শোনার পর থেকে দুই সন্তানই কেঁদে যাচ্ছে।

রুবেলের বাবা নজরুল ইসলামের প্রশ্ন, ‘ছেলেটাক ওমরা (তারা) কীসক (কেন) মারল? ওর কী দোষ?’

মায়ের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করা হলে রুলি বেগম কিছুই বলতে পারেননি। শুধু কাঁদছিলেন।

রুবেলের হত্যার ঘটনায় পরিবারের পক্ষ থেকে কোনো মামলা হবে না বলে জানানো হয়েছে। সরকারি দায়িত্ব পালনের সময় মৃত্যু হওয়ায় বিজিবির পক্ষ থেকে মামলা হবে বলে জানানোয় তাদের এই সিদ্ধান্ত।

মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে রুবেলের ভায়রা ভাই আবদুর রশিদ বলেন, ‘পিটিয়ে মারছে কি না তা বলতে পারব না। তবে বিজিবি যে ভাষ্য এখানে দিছে তা হলো, গলায় গুলি লাগছে। পোস্টমর্টেম বা কাটাকাটি যে করছে আমরা তার প্রমাণ পাইছি। লাশের গলায় কাফনের কাপড় প্যাঁচায়ে রাখা ছিল।’

তবে কার গুলিতে মৃত্যু হয়েছে তা নিশ্চিত নন রশিদ। তিনি বলেন, ‘পুলিশের গুলিতেও হতে পারে, বিজিবির গুলিতেও হতে পারে। আবার আর কেউও গুলি করতে পারে। তবে গুলিতেই যে মারা গেছেন এটা সত্যি।

‘ডিফেন্সের যে পলিসি আছে সে মোতাবেক কিছু টাকা, দাফনের অর্থ আর চাল-ডাল পেয়েছি। বিজিবিই মামলা করবে বলেছে। তাই পরিবার কোনো মামলা করবে না।’

শালমারা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আমির হোসেন শামীম জানান, সোমবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে রুবেলের দাফন হয়েছে। জানাজায় পরিবার, প্রতিবেশী, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা অংশ নেয়।

চেয়ারম্যান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রুবেলের পরিবার একেবারে অসহায় হয়ে গেল। তার অর্থেই পুরো পরিবার চলত। পরিবারটাকে এখন কে দেখবে?’

নির্বাচনি সহিংসতায় বিজিবি সদস্য নিহতের ঘটনায় জড়িত সন্দেহে আটজনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে নীলফামারী পুলিশ।

আরও পড়ুন:
প্রতিরক্ষায় ৭ নতুন সংস্থার ঘোষণা মোদির
দিল্লিতে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২ পাকিস্তানি

শেয়ার করুন

রামপুরায় শিক্ষার্থীকে চাপা দেয়া বাসের হেলপার গ্রেপ্তার

রামপুরায় শিক্ষার্থীকে চাপা দেয়া বাসের হেলপার গ্রেপ্তার

অনাবিল পরিবহনের এক বাসের চাপায় প্রাণ গেছে এসএসসি পরীক্ষা দেয়া এক শিক্ষার্থীর। ছবি: সংগৃহীত

সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে রামপুরা বাজারে সোনালী ব্যাংকের সামনের রাস্তায় অনাবিল পরিবহনের একটি বাসের চাপায় ঘটনাস্থলেই প্রাণ যায় মাইনুদ্দিন নামের এক শিক্ষার্থীর। ঘটনার সময় চালককে আটকরা করা গেলেও পালিয়ে গিয়েছিলেন হেলপার।

রাজধানীর রামপুরায় বাসের ধাক্কায় এক শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনায় বাসটির হেলপার চান মিয়াকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব।

সায়েদাবাদ এলাকা থেকে মঙ্গলবার সকালে তাকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে র‌্যাবের মিডিয়া উইং থেকে ক্ষুদে বার্তায় নিশ্চিত করা হয়েছে।

সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে রামপুরা বাজারে সোনালী ব্যাংকের সামনের রাস্তায় অনাবিল পরিবহনের একটি বাসের চাপায় ঘটনাস্থলেই প্রাণ যায় মাইনুদ্দিন নামের এক শিক্ষার্থীর।

মাইনুদ্দীন একরামুন্নেসা স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে এবার এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিলেন। পরীক্ষা শেষ হয়ে যাওয়ায় বাবার ব্যবসায় সহযোগিতা করছিলেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সোমবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে রামপুরা বাজারে সোনালী ব্যাংকের সামনের রাস্তায় দুর্ঘটনাটি ঘটে। পরে বিক্ষুব্ধ জনতা অনাবিল পরিবহনের একাধিক বাসসহ অন্তত আটটি বাসে আগুন ও চারটি বাস ভাঙচুর করে। বিপুল সংখ্যক পুলিশ এসে রাতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

দুর্ঘটনার সময় চালককে আটক করে প্রত্যক্ষদর্শীরা। তাকে পিটুনি দিয়ে পুলিশের হাতে দেয়া হয়। বর্তমানে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই চালক।

ঘটনার পর পালিয়ে যান হেলপার চান মিয়া।

আরও পড়ুন:
প্রতিরক্ষায় ৭ নতুন সংস্থার ঘোষণা মোদির
দিল্লিতে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২ পাকিস্তানি

শেয়ার করুন

স্কুল শিক্ষককে বাস থেকে ফেলে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৩

স্কুল শিক্ষককে বাস থেকে ফেলে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় গ্রেপ্তার ৩

স্কুল শিক্ষককে বাস থেকে ফেলে হত্যাচেষ্টা। ছবি: নিউজবাংলা

র‍্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট নিয়াজ মোহাম্মদ চপল বলেন, ‘২৭ তারিখ দুপুরে অক্সিজেন থেকে ৮ নম্বর বাসে করে পিটিআই যাওয়ার পথে পুরাতন স্টেশন এলাকায় তাকে বাস থেকে ফেলে হত্যাচেষ্টা করা হয়। এই ঘটনায় মূল আসামিসহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।’

চট্টগ্রামের কোতোয়ালি থানার পুরাতন রেলস্টেশন এলাকায় বাস থেকে ফেলে স্কুলশিক্ষককে হত্যাচেষ্টা মামলায় ৩ জনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন- র‍্যাব।

চট্টগ্রামে বাস ভাড়া নিয়ে তর্কের জেরে রহমত উল্লাহ নামের ওই স্কুলশিক্ষককে বাস থেকে ধাক্কা দিয়ে ফেলে পায়ের ওপর দিয়ে বাস চালিয়ে দেয়ার অভিযোগ উঠে।

গত শনিবার বেলা ২টার দিকে নগরীর বড়তল রেলস্টেশন এলাকায় এই ঘটনা ঘটে।

আহত রহমত উল্লাহ নগরীর পাঁচলাইশ থানাধীন হাবিবুল্লাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক।

গ্রেপ্তারের বিষয়টি নিউজবাংলাকে মঙ্গলবার সকালে নিশ্চিত করেছেন র‍্যাব-৭ এর সিনিয়র সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) ফ্লাইট লেফটেন্যান্ট নিয়াজ মোহাম্মদ চপল।

তিনি বলেন, ‘২৭ তারিখ দুপুরে অক্সিজেন থেকে ৮ নম্বর বাসে করে পিটিআই যাওয়ার পথে পুরাতন স্টেশন এলাকায় তাকে বাস থেকে ফেলে হত্যাচেষ্টা করা হয়। এই ঘটনায় মূল আসামিসহ ৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। দুপুরে প্রেস ব্রিফিংয়ে বিস্তারিত জানানো হবে।’

আহত রহমত উল্লাহর সহকর্মী মো. মিজাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘তিনি নগরীর অক্সিজেন থেকে ৮ নম্বর বাসে করে সদরঘাট পিটিআইয়ে (প্রাইমারি ট্রেনিং ইনস্টিটিউট) যাচ্ছিলেন। তবে নামার সময় ভাড়া নিয়ে চালকের সহকারীর সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডা হয়। তিনি বটতল এলাকায় নেমে যেতে চাইলেও তাকে পুরাতন রেলস্টেশন এলাকায় নিয়ে যান চালক। পরে তাকে ধাক্কা মেরে চলন্ত বাস থেকে ফেলে দেন চালকের সহকারী। এরপর পায়ের ওপর দিয়েই বাস চালিয়ে দেন চালক। এতে তার হাত, পা ও শরীরের বিভিন্ন অংশে মারাত্মক জখম হয়।’

আরও পড়ুন:
প্রতিরক্ষায় ৭ নতুন সংস্থার ঘোষণা মোদির
দিল্লিতে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২ পাকিস্তানি

শেয়ার করুন