কালকিনিতে পুলিশের ওপর হামলা মামলায় গ্রেপ্তার ৪    

কালকিনিতে পুলিশের ওপর হামলা মামলায় গ্রেপ্তার ৪    

কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসতিয়াক আসফাত রাসেল বলেন, ‘পুলিশের কাজে বাধা ও সংঘর্ষের ঘটনায় ৫০ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়। এ মামলায় ৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের রোববার আদালতে তোলা হবে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।’

মাদারীপুরে কালকিনিতে পুলিশের ওপর হামলা মামলায় ৪ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় শনিবার দুপুরে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে তারা হলেন, সাদ্দাম, রশিদ, মোস্তফা ও রবিউল। তারা সবাই কালকিনি উপজেলার বাসিন্দা।

মামলার বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, কুমিল্লায় কোরআন অবমাননার প্রতিবাদে কালকিনি পৌর এলাকার ভুরঘাটা বাসস্ট্যান্ডে শুক্রবার আসর নামাজ শেষে তৌহিদী জনতার ব্যানারে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। সাম্প্রদায়িক উষ্কানিমূলক শ্লোগান দেয়া ওই মিছিল বন্ধের নির্দেশ দিয়েছিল পুলিশ।

মিছিল বন্ধ না করায় একপর্যায়ে পুলিশ ফাঁকা গুলি ছোড়ে। এসময় পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষে জড়ায় মিছিলকারীরা। এতে কালকিনি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) নাসিরউদ্দিনসহ আহত হন দুই পুলিশ সদস্য। এ ঘটনায় অজ্ঞাতপরিচয় ৫০ জনকে আসামি করে মামলা করে পুলিশ।

এ বিষয়ে কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইসতিয়াক আসফাত রাসেল বলেন, ‘পুলিশের কাজে বাধা ও সংঘর্ষের ঘটনায় ৫০ জনকে আসামি করে মামলা করা হয়। এ মামলায় চারজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের রোববার আদালতে তোলা হবে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারে অভিযান চলছে।’

আরও পড়ুন:
মা ও দুই শিশুর মৃত্যু: গ্রেপ্তার স্বামী
ফেসবুকে ‘বিতর্কিত পোস্ট’ দেয়ায় যুবক গ্রেপ্তার
আশুগঞ্জে বারে অভিযান, গ্রেপ্তার ৩৯
এএসপি পরিচয়ে বিয়ে করতে গিয়ে ধরা
দাম্পত্য কলহের জেরে স্ত্রী হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

মন্তব্য

রোমানিয়ায় বন্দি: মুক্তিপণের টাকা দিতে ভিডিওবার্তায় আকুতি

রোমানিয়ায় বন্দি: মুক্তিপণের টাকা দিতে ভিডিওবার্তায় আকুতি

রোমানিয়ায় দালালদের হাতে আটক পাঁচ যুবক। ছবি: নিউজবাংলা

দালাল চক্রের হাতে বন্দি ৫ যুবকের পরিবার জানিয়েছে, রোমানিয়া থেকে ইতালি পাঠানোর কথা বলে পাঁচ যুবকের পরিবারের কাছ থেকে এরই মধ্যে প্রায় অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে দালাল চক্রটি। আরও টাকার জন্য এখন রোমানিয়ার অজ্ঞাত স্থানে আটকে রেখে তাদের ওপর নির্যাতন করা হচ্ছে।

‘আমরা পাঁচজন রোমানিয়ায় দালালদের হাতে আটকা আছি। একটা রুমের মধ্যে আমাগো আটকে রাখছে। আমাগো ১৫ দিন ধইরা খাওন দেয় না। যেমনেই হোক, আম্মেরা আমাগো বাঁচান। এইডাই আম্মেগো কাছে আমাগো আবেদন। যেমনেই হোক, আমাগোর পাঁচটা জীবন বাঁচান।’

হোয়াটসঅ্যাপে পাঠানো এক ভিডিওবার্তায় এভাবেই পরিবারের কাছে বাঁচার আকুতি জানান ইউরোপের দেশ রোমানিয়ায় দালালদের হাতে বন্দি মাদারীপুরের পাঁচ যুবকের একজন।

বন্দি পাঁচজন হলেন মাদারীপুরের ডাসার উপজেলার প্রয়াত সৈয়দ সালামের ছেলে তানভীর হোসেন, সদর উপজেলার বাবুল মাতুব্বরের ছেলে বায়েজিদ মাতুব্বর, মজিবর হাওলাদারের ছেলে রাশেদ হাওলাদার ও প্রয়াত তারেক হাওলাদারের ছেলে মোফাজ্জেল হাওলাদার এবং খোয়াজপুর ইউনিয়নের জাহান মুনশির ছেলে মিলন মুনশি।

তাদের পরিবার নিউজবাংলাকে জানিয়েছে, রোমানিয়া থেকে ইতালি পাঠানোর কথা বলে পাঁচ যুবকের পরিবারের কাছ থেকে এরই মধ্যে প্রায় অর্ধকোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছে দালাল চক্রটি। আরও টাকার জন্য এখন রোমানিয়ার অজ্ঞাত স্থানে আটকে রেখে তাদের ওপর নির্যাতন করা হচ্ছে।

নির্যাতনের সেই ছবি ও ভিডিও হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে তাদের কাছে পাঠাচ্ছে দালাল চক্রটি। বাঁচার আকুতি জানানো ১ মিনিট ৮ সেকেন্ডের ভিডিওবার্তাটি তারা এভাবে পাঠিয়েছেন।

ওই ভিডিও পাওয়ার পর শুক্রবার রাতে মাদারীপুর সদর মডেল থানায় মানবপাচার আইনে মামলা করেছে ভুক্তভোগী একটি পরিবার। এতে স্থানীয় ছয় দালালকে আসামি করা হয়েছে। মামলার পর প্রধান আসামি আল-আমিন নামে একজনকে গ্রেপ্তারও করেছে পুলিশ।

এজাহার থেকে জানা যায়, দালালদের মাধ্যমে গত আগস্টে বাংলাদেশ থেকে অবৈধভাবে তুরস্ক হয়ে গ্রিসে যান ওই পাঁচ যুবক।

এ চক্রের হোতা মাদারীপুর সদর উপজেলার হাজিরহাওলা এলাকার আল-আমিন। তাকে সহযোগিতা করেন সদর উপজেলার রাস্তি এলাকার শামিম আকন ও তার স্ত্রী সুমি বেগম, একই এলাকার সিরাজ আকন, সদরের হাজিরহাওলা এলাকার জাফর ব্যাপারী ও তার স্ত্রী রীনা বেগম এবং হাজিরহাওলা এলাকার সিরাজ আকনের স্ত্রী রানু বেগম।

চক্রটি ওই পাঁচ যুবককে গ্রিস থেকে রোমানিয়া হয়ে ইতালি নেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে আগস্টেই তাদের পরিবারের কাছ থেকে ৮ থেকে ১০ লাখ টাকা করে নেয়।

টাকা দেয়ার কিছুদিনের মধ্যেই তাদের গ্রিস থেকে রোমানিয়ায় নিয়ে যায় চক্রটি। তবে সেখানে তাদের আটকে রেখে এখন জনপ্রতি ১০ লাখ টাকা করে মুক্তিপণ চাচ্ছে।

রোমানিয়ায় বন্দি বায়েজিদের মা মাজেদা বেগম বলেন, ‘দালালরা মাফিয়াদের সঙ্গে হাত মিলায়া আমার পোলারে বন্দি করে রাখছে। আরও ১০ লাখ টাকা না দিলে আমার পোলারে মাইরা ফেলাবে। আমি এহন এত টাকা কই পামু? কে দেবে আমারে টাকা?’

অভিযোগের বিষয়ে আল-আমিনের স্ত্রী সুমি বেগম বলেন, ‘আমি আমার বাবার বাড়িতে আছি। আল-আমিন কার থেকে কী টাকা এনেছে, জানি না।’

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও সদর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মাহমুদুল হাসান বলেন, ‘রোমানিয়া ও সার্বিয়ায় ১০ বাংলাদেশি বন্দি আছেন বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়। রোমানিয়ার পাঁচজন সম্প্রতি দালালদের খপ্পরে পড়েছে বলে আমরা জেনেছি।’

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার গোলাম মোস্তফা রাসেল বলেন, ‘মানবপাচার কোনোভাবেই সহ্য করা হবে না। কেউ অভিযোগ দিলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

‘রোমানিয়া ও সার্বিয়ায় বন্দি করার ঘটনায় একজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিদের খুঁজে বের করে ব্যবস্থা নেয়া হবে। যত শক্তিশালীই হোক না কেন, দোষীদের আইনের আওতায় আনা হবে।’

আরও পড়ুন:
মা ও দুই শিশুর মৃত্যু: গ্রেপ্তার স্বামী
ফেসবুকে ‘বিতর্কিত পোস্ট’ দেয়ায় যুবক গ্রেপ্তার
আশুগঞ্জে বারে অভিযান, গ্রেপ্তার ৩৯
এএসপি পরিচয়ে বিয়ে করতে গিয়ে ধরা
দাম্পত্য কলহের জেরে স্ত্রী হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তকে নৌকা, পরে সংশোধন

ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্তকে নৌকা, পরে সংশোধন

ছয় খুনের ফাঁসির আসামি আনোয়ার হোসেন। ছবি: সংগৃহীত

সংশোধিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, প্রকাশিত তালিকায় ভুল নাম লিপিবদ্ধ হয়েছে। আমিনবাজার ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. রাকিব হোসেন। এর আগে ছয় খুনের ফাঁসির আসামি আনোয়ার হোসেনকে নৌকার মনোনয়ন দেয়া হয়েছিল।

ঢাকার সাভারে ছয় শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় মৃত্যুদণ্ড পাওয়া আমিনবাজার ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেয়ার পরপরই সেটি বাতিল করা হয়েছে।

শনিবার রাতে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়ার সই করা সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে অসাবধানতাবশত ভুলের বিষয়টি জানানো হয়।

বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এরই মধ্যে ছড়িয়ে পড়ে। এর আগে সাভারের ১১ ইউপিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীদের তালিকাও আসে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে। যেখানে আমিনবাজার ইউনিয়নে বর্তমান চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনকে নৌকার মনোনয়ন দেয়া হয়।

সংশোধিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, শনিবার বিকেল ৪টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের সংসদীয় ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের মুলতবি সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মনোনীত প্রার্থীদের তালিকা প্রকাশ করা হয়। প্রকাশিত তালিকায় অসাবধানতাবশত আমিনবাজার ইউপিতে চেয়ারম্যান পদে মনোনীত প্রার্থীর পরিবর্তে ভুল নাম লিপিবদ্ধ হয়। এই ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. রাকিব হোসেন।

২০১১ সালের ১৭ জুলাই সাভারের আমিনবাজারে ডাকাত আখ্যা দিয়ে ছয় শিক্ষার্থীকে পিটিয়ে হত্যা করা হয়। এ ঘটনায় করা মামলার ১০ বছর পর চলতি বছরের ২ ডিসেম্বর আমিনবাজার ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনসহ ১৩ আসামির মৃত্যুদণ্ড দেয় আদালত। আজীবন কারাদণ্ড দেয়া হয় আরও ১৯ আসামিকে।

আরও পড়ুন:
মা ও দুই শিশুর মৃত্যু: গ্রেপ্তার স্বামী
ফেসবুকে ‘বিতর্কিত পোস্ট’ দেয়ায় যুবক গ্রেপ্তার
আশুগঞ্জে বারে অভিযান, গ্রেপ্তার ৩৯
এএসপি পরিচয়ে বিয়ে করতে গিয়ে ধরা
দাম্পত্য কলহের জেরে স্ত্রী হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

মার্জিত ভাষা, শালীনতাবোধ জরুরি: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

মার্জিত ভাষা, শালীনতাবোধ জরুরি: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

জামালপুরে সংবাদমাধ্যম কর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময়ে বক্তব্য রাখেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান। ছবি: নিউজবাংলা

তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান বলেন, ‘জনগণের ট্যাক্সের টাকায় প্রতিপালিত হয় প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীরা। সেজন্য সাধারণ জনগণসহ সবার সঙ্গেই তাদের ভাষা ও ব্যবহারে মার্জিত, শোভন ও শালীনতাবোধ থাকা বাঞ্ছনীয়।’

অনলাইনে একটি সাক্ষাৎকারে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া, তার নাতনি জাইমা রহমানকে নিয়ে আপত্তিকর বক্তব্য দিয়ে সমালোচনায় পড়া তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান এবার জোর দিয়েছেন মার্জিত ভাষা ও শালীনতাবোধে। এটি বাংলাদেশের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের শিক্ষা-সেটিএ স্মরণ করিয়ে দিয়েছেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী নিজ জেলা জামালপুরে গিয়ে এই মন্তব্য করেন সেখানকার গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে এক মত বিনিময়ে। সেখানকার পুলিশ সুপার গণমাধ্যমকর্মীদের সঙ্গে বাজে আচরণ করেছেন, এমন অভিযোগ উঠার পর তিনি বসেন সাংবাদিকদের সঙ্গে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘জনগণের ট্যাক্সের টাকায় প্রতিপালিত হয় প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীরা। সেজন্য সাধারণ জনগণসহ সবার সঙ্গেই তাদের ভাষা ও ব্যবহারে মার্জিত, শোভন ও শালীনতাবোধ থাকা বাঞ্ছনীয়।’

‘‌সেবা দেয়া ছাড়া তারা কারও সঙ্গেই কোনো অশোভন আচরণ করার অধিকার রাখেন না’- এ কথা জানিয়ে তিনি বঙ্গবন্ধুর কথাও তুলে ধরেন। বলেন, ‘‌এটা আমার কথা নয়, বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কথা।’

সম্প্রতি একটি সাক্ষাৎকারে তথ্য প্রতিমন্ত্রী বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা, দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া ও তাদের পুত্র তারেক রহমানকে নিয়ে যে বক্তব্য রেখেছেন, তার তীব্র সমালোচনা হচ্ছে। ইন্টারনেটে ছড়িয়ে প্রতিমন্ত্রী সেটি সরিয়ে নেন, যদিও নিউজবাংলাকে তিনি বলেছেন, তিনি তার বক্তব্যে অটল। কে কী সমালোচনা করল, তা তিনি গুরুত্ব দেন না।

প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে এই মতবিনিময় যে কারণে সাংবাদিকরা আয়োজন করেছেন, তার শুরু গত শুক্রবার। সেই রাতে সাংবাদিকদের ধরে এনে পিটিয়ে চামড়া তুলে নেয়ার হুমকি দেয়ার অভিযোগ ওঠে পুলিশ সুপার মো. নাছির উদ্দীন আহমেদের বিরুদ্ধে। তার প্রত্যাহার দাবিতে গতকাল শনিবার থেকে আন্দোলনে নামেন জেলার গণমাধ্যমকর্মীরা।

তথ্য প্রতিমন্ত্রীর সঙ্গে মতবিনিময় শেষে তার কাছে পুলিশ সুপারের প্রত্যাহার চেয়ে স্মারকলিপি দেন তারা।
পরে জেলা প্রশাসকের কার্যালয় চত্বরে সমাবেশ করে প্রধানমন্ত্রী বরাবর স্মারকলিপি দেন সাংবাদিকরা। তারপর সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান।

তিনি বলেন, ‘জামালপুরের পুলিশ সুপার (এসপি) নাছির উদ্দীন আহমেদ সাংবাদিকদের সঙ্গে যে অশোভন আচরণ করেছেন, তা আমি বিভিন্ন মাধ্যমে অবগত হয়েছি। সাংবাদিক ভাইদের কাছ থেকেও বিস্তারিত শুনলাম। এ বিষয়ে আমি সরাসরি স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলব।’

শুক্রবার রাতে পুলিশের নিজস্ব সংগঠন পুলিশ নারীকল্যাণ সমিতি-পুনাক আয়োজিত মেলা সম্পর্কে অবহিত করতে সাংবাদিকদের মেলা প্রাঙ্গণে ডাকেন পুলিশ সুপার নাছির উদ্দীন। সেখানে যাওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে জামালপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি হাফিজ রায়হান সাদা ও সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমানকে ধরে পিটিয়ে চামড়া তোলা এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ফাঁসিয়ে দেয়ার হুমকি দেন এসপি। এরপর থেকেই আন্দোলনে নামেন জেলার কর্মরত সাংবাদিকরা।

আরও পড়ুন:
মা ও দুই শিশুর মৃত্যু: গ্রেপ্তার স্বামী
ফেসবুকে ‘বিতর্কিত পোস্ট’ দেয়ায় যুবক গ্রেপ্তার
আশুগঞ্জে বারে অভিযান, গ্রেপ্তার ৩৯
এএসপি পরিচয়ে বিয়ে করতে গিয়ে ধরা
দাম্পত্য কলহের জেরে স্ত্রী হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

ডেমু-বাস-অটোরিকশার সংঘর্ষ: বাসচালকের বিরুদ্ধে মামলা

ডেমু-বাস-অটোরিকশার সংঘর্ষ: বাসচালকের বিরুদ্ধে মামলা

খুলশীতে শনিবার ডেমু,বাস ও অটোরিকশার সংঘর্ষে তিনজন নিহত হয়েছেন। ছবি: নিউজবাংলা

রেলওয়ে থানার ওসি নাজিম উদ্দীন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনা অনুযায়ী বাসটি দ্রুতগতিতে এসে দাঁড়িয়ে থাকা সিএনজিচালিত অটোরিকশার পেছনে ধাক্কা দেয়। এতে বাস ও অটোরিকশা রেললাইনের ওপর উঠে যায়। তাই মামলার একমাত্র আসামি বাসচালক। তবে তাকে এখনও চিহ্নিত করা যায়নি।’

চট্টগ্রাম নগরের খুলশীতে ডেমু ট্রেন, বাস ও সিএনজিচালিত অটোরিকশার সংঘর্ষে তিনজন নিহতের ঘটনায় বাসচালকের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

শনিবার রাতে চট্টগ্রাম রেলওয়ে থানায় উপপরিদর্শক জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে মামলাটি করেন।

মামলায় বাসচালককে আসামি করা হলেও তাকে এখনও চিহ্নিত করতে পারেনি পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করে রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজিম উদ্দীন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘প্রত্যক্ষদর্শীদের বর্ণনা অনুযায়ী বাসটি দ্রুতগতিতে এসে দাঁড়িয়ে থাকা সিএনজিচালিত অটোরিকশার পেছনে ধাক্কা দেয়। এতে বাস ও অটোরিকশা রেললাইনের ওপর উঠে যায়। তাই মামলার একমাত্র আসামি বাসচালক। তবে তাকে এখনও চিহ্নিত করা যায়নি।’

এর আগে শনিবার দুপুরে রেলওয়ে পুলিশের চট্টগ্রামের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল গফুরকে প্রধান করে এ সংঘর্ষের ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

রেলওয়ে পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) ও চট্টগ্রামের রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কমকর্তাকেও তদন্ত কমিটির সদস্য করা হয়েছে।

তদন্ত কমিটিকে তিন কর্মদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে রেলওয়ে পূর্বাঞ্চলের মহাব্যবস্থাপক (জিএম) জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, ‘এ ঘটনায় গেটম্যানের কোনো অবহেলা থাকলে তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

এর আগে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে নগরের ঝাউতলা এলাকায় ডেমু ট্রেন, বাস ও অটোরিকশার সংঘর্ষে ট্রাফিক পুলিশের কনস্টেবলসহ তিনজন নিহত হন। এতে আহত হন অন্তত ছয়জন।

নিহতরা হলেন চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশের ট্রাফিক উত্তর বিভাগের কনস্টেবল মনির হোসেন। তার বাড়ি নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে। বাকি দুজন নগরীর হামজারবাগ এলাকার সৈয়দ বাহাউদ্দিন আহমেদ ও পাহাড়তলী বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের ছাত্র সাতরাজ উদ্দিন।

দুর্ঘটনার পরই স্থানীয়দের বরাত দিয়ে ওসি নাজিম উদ্দিন জানান, একটি ডেমু ট্রেন ষোলশহর থেকে চট্টগ্রাম স্টেশনে যাচ্ছিল। এ সময় জাকির হোসেন রোডের ওই লেভেল ক্রসিংয়ের দুই দিকের গেট আটকানো ছিল।

তবে এর মধ্যেও একটি অটোরিকশা উল্টোপথে লাইন অতিক্রম করার চেষ্টা করে। এর পেছনে একটি বাসও লাইনের ওপর উঠে যায়। এ সময় ট্রেনটি বাস ও অটোরিকশাকে ধাক্কা দেয়। এতে ঘটনাস্থলেই সৈয়দ বাহাউদ্দিন আহমেদের মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন:
মা ও দুই শিশুর মৃত্যু: গ্রেপ্তার স্বামী
ফেসবুকে ‘বিতর্কিত পোস্ট’ দেয়ায় যুবক গ্রেপ্তার
আশুগঞ্জে বারে অভিযান, গ্রেপ্তার ৩৯
এএসপি পরিচয়ে বিয়ে করতে গিয়ে ধরা
দাম্পত্য কলহের জেরে স্ত্রী হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

বিদেশি সিগারেটসহ চীনা নাগরিক আটক

বিদেশি সিগারেটসহ চীনা নাগরিক আটক

কোস্টগার্ড পূর্বজোনের মিডিয়া কর্মকর্তা আব্দুর রউফ জানান, স্টেশন কামান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার নাঈম উর হকের নেতৃত্বে শাহপরীর দ্বীপের সমুদ্র এলাকায় একটি ট্রলারে অভিযান চালানো হয়। এ সময় ১০ হাজার ৮৪০ প্যাকেট ব্ল্যাক ব্র্যান্ডের সিগারেটগুলো উদ্ধার করা হয়। এ সময় চীনা নাগরিক ইয়াপেংকে আটক করা হয়।

কক্সবাজারের টেকনাফ সীমান্ত এলাকা থেকে অনুমোদনহীন বিদেশি সিগারেটসহ এক চীনা নাগরিককে আটক করেছে কোস্ট গার্ড।

রোববার বেলা ১১টার দিকে অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করা হয়।

নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কোস্টগার্ড পূর্বজোনের মিডিয়া কর্মকর্তা আব্দুর রউফ।

তিনি জানান, বিসিজি স্টেশন কামান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার নাঈম উর হকের নেতৃত্বে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে শাহপরীর দ্বীপের সমুদ্র এলাকায় একটি ট্রলারে অভিযান চালানো হয়। এ সময় ১০ হাজার ৮৪০ প্যাকেট ব্ল্যাক ব্র্যান্ডের সিগারেটগুলো উদ্ধার করা হয়। এ সময় চীনা নাগরিক ইয়াপেংকে আটক করা হয়।

মিডিয়া কর্মকর্তা আব্দুর রউফ বলেন, আটক চীনা নাগরিকের বিরুদ্ধে পরবর্তী আইনি ব্যবস্থা শেষে টেকনাফ থানায় হস্তান্তর করা হবে।

আরও পড়ুন:
মা ও দুই শিশুর মৃত্যু: গ্রেপ্তার স্বামী
ফেসবুকে ‘বিতর্কিত পোস্ট’ দেয়ায় যুবক গ্রেপ্তার
আশুগঞ্জে বারে অভিযান, গ্রেপ্তার ৩৯
এএসপি পরিচয়ে বিয়ে করতে গিয়ে ধরা
দাম্পত্য কলহের জেরে স্ত্রী হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

সাতরাজ নিহতের ঘটনায় বিচারের দাবি শিক্ষার্থীদের

সাতরাজ নিহতের ঘটনায় বিচারের দাবি শিক্ষার্থীদের

সাতরাজ নিহতের ঘটনায় বিচারের দাবি জানায় শিক্ষার্থীরা। ছবি: নিউজবাংলা

খুলশী থানার ওসি শাহিনুজ্জামান শাহিন বলেন, ‘কয়েকজন শিক্ষার্থী তাদের কিছু দাবি নিয়ে সড়কের এক পাশে অবস্থান নিয়েছে ৷ যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।’

চট্টগ্রামের খুলশীতে রেল দুর্ঘটনায় এইচএসসি পরীক্ষার্থী সাতরাজ উদ্দিন নিহতের ঘটনায় বিচারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন শিক্ষার্থীরা।

নগরীর ওয়ারলেসে রোববার বেলা ১১টার দিকে মিছিলটি শুরু হয়ে দুর্ঘটনাস্থল ঝাউতলায় এসে সমাবেশ করেন তারা।

সমাবেশে সাতরাজকে হত্যা করা হয়েছে দাবি করে দোষীদের বিচার ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে তারা স্লোগান দেন।

এ সময় সাতরাজের সহপাঠী পার্থ সারথী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘একটার পর একটা খুন হচ্ছে সড়কে। এর সর্বশেষ শিকার সাতরাজ উদ্দিন। এটি নিছক দুর্ঘটনা নয়, এটি হত্যা। বাসের চালক ও হেলপারদের অবহেলায় তাকে মরতে হয়েছে৷ আমরা দোষীদের বিচার ও নিরাপদ সড়ক চাই।’

মো. আফিফ নামে পাহাড়তলী কলেজের এক শিক্ষার্থী বলেন, ‘সিসিটিভি ফুটেজে স্পষ্ট দেখা যাচ্ছে যে, বাস দ্রুতগতিতে অটোরিকশাকে ধাক্কা দিয়ে সেটি সঙ্গে নিয়ে চলন্ত ট্রেনকে ধাক্কা দিয়েছে। এর দায় বাসচালকের। ওরা সড়কে যাচ্ছেতাই করে, কেউ দেখার নেই। সাতরাজসহ এখন পর্যন্ত সড়কে যারা খুন হয়েছে, আমরা সবার বিচার দাবি করছি।’

খুলশী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি শাহিনুজ্জামান শাহিন বলেন, ‘কয়েকজন শিক্ষার্থী তাদের কিছু দাবি নিয়ে সড়কের এক পাশে অবস্থান নিয়েছে৷ যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।’

আরও পড়ুন:
মা ও দুই শিশুর মৃত্যু: গ্রেপ্তার স্বামী
ফেসবুকে ‘বিতর্কিত পোস্ট’ দেয়ায় যুবক গ্রেপ্তার
আশুগঞ্জে বারে অভিযান, গ্রেপ্তার ৩৯
এএসপি পরিচয়ে বিয়ে করতে গিয়ে ধরা
দাম্পত্য কলহের জেরে স্ত্রী হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন

ভোটে হেরে নৌকা মার্কার বিরুদ্ধে আ.লীগ প্রার্থী

ভোটে হেরে নৌকা মার্কার বিরুদ্ধে আ.লীগ প্রার্থী

মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার আড়িয়ল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি দ্বীন ইসলাম শেখ।

আওয়ামী লীগ সভাপতি হাফিজ আল আসাদ বারেক বলেন, ‘অনেক নেতা-কর্মী আমার কাছে ভিডিওটি পাঠাচ্ছেন। নৌকা প্রতীক নিয়ে এমন কথা বলা আমাদের জন্য অত্যন্ত কষ্টদায়ক। তিনি আমাদের দলীয় প্রতীক নিয়ে কটূক্তি করেছেন। আমি আশা করি উনি এ বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইবেন।’

‘আগামীতে মনোনয়ন লাগব না। ভোটও চাওয়া লাগবে না। এমনি পাস করুম। যদি পিছা মার্কা থাকে তবে পিছা মার্কা আনুম, নৌকা মার্কা আনুম না। নৌকা মার্কা না আনলে আমরা পাস করব নিশ্চিত।’

নির্বাচনে পরাজয়ের পর এক সভায় এই বক্তব্য দিয়েছেন মুন্সীগঞ্জের টঙ্গীবাড়ী উপজেলার আড়িয়ল ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী দ্বীন ইসলাম শেখ। তিনি আড়িয়ল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন।

অনুষ্ঠানে দেয়া তার বক্তব্যের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে এরই মধ্যে। এ নিয়ে স্থানীয় নেতা-কর্মীদের মধ্যে তৈরি হয়েছে তীব্র প্রতিক্রিয়া।

ভিডিওতে তাকে নির্বাচনে পরাজয়ের কারণ সম্পর্কেও বলতে শোনা গেছে। তিনি বলেন, ‘ভোট যা হইছে বাদ, আজকা থেকে পেছনে কী হইছে সেটা দেখব না। আমি আশাবাদী মানুষ, আমি খালি সামনে দেখি। সামনে দেখব এগিয়ে যাব। আজকে আমরা চেয়ারম্যান হাইরা গিয়া মন খারাপ করছে অনেকে। ভাগ্য থাকলে তো আগামীবার উপজেলাও করতে পারি, কী বলেন?

‘চেয়ারম্যানি নিয়া চিন্তা করার কিছু নাই। চাইলে আল্লাহরেও পাওয়া যায়, এটা তো চেয়ারম্যানই। এবারও পারতাম, তয় দুই-চারটা মরতো হয়তো। এ জন্য করি নাই।’

এই বক্তব্য প্রসঙ্গে দ্বীন ইসলাম শেখ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমাদের ইউনিয়ন থেকে ১০ জন নৌকা চাইছিলাম। আমি নৌকা পাওয়ার পর বাকি ৯ জনই আমার বিপক্ষে কাজ করেছে। একজন বিদ্রোহী প্রার্থী ছিল। সবাই মিলে আমাকে অনেকটা ঘরবন্দি করে রাখছিল। আমার ভাগনেকে মারধর করা হয়েছিল।

‘স্থানীয় নেতা-কর্মীরা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী কেউ আমাকে সহযোগিতা করেনি। প্রশাসন থেকেও অসহযোগিতা করা হয়েছে। নৌকার বিপক্ষে কাজ করা নেতা-কর্মীদের বিষয়ে জেলার নেতাদের কাছে লিখিত অভিযোগ করেছিলাম। মনের কষ্টে কথা তাই বলেছি।’

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কবির হালদার নিউজবাংলাকে বলেন, নির্বাচনে পাস-ফেল থাকবে। তবে তার এ বক্তব্য কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য না। দলকে অবমাননা করা হয়েছে। এ বিষয়ে সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি হাফিজ আল আসাদ বারেক বলেন, ‘অনেক নেতা-কর্মী আমার কাছে ভিডিওটি পাঠাচ্ছেন। নৌকা প্রতীক নিয়ে এমন কথা বলা আমাদের জন্য অত্যন্ত কষ্টদায়ক। তিনি আমাদের দলীয় প্রতীক নিয়ে কটূক্তি করেছেন। আমি আশা করি উনি এ বক্তব্যের জন্য ক্ষমা চাইবেন। এ বিষয়ে নেতাদের থেকে যে সিদ্ধান্ত আসবে, সে অনুযায়ী সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

গত ২৮ নভেম্বর তৃতীয় ধাপে টঙ্গীবাড়ী উপজেলার আড়িয়ল ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে বিজয়ী হন আনারস প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী কাদির হাওলাদার। পরাজিত হন দ্বীন ইসলাম শেখ।

আরও পড়ুন:
মা ও দুই শিশুর মৃত্যু: গ্রেপ্তার স্বামী
ফেসবুকে ‘বিতর্কিত পোস্ট’ দেয়ায় যুবক গ্রেপ্তার
আশুগঞ্জে বারে অভিযান, গ্রেপ্তার ৩৯
এএসপি পরিচয়ে বিয়ে করতে গিয়ে ধরা
দাম্পত্য কলহের জেরে স্ত্রী হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার

শেয়ার করুন