× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ পৌর নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য

বাংলাদেশ
In Comilla all Hindus and Muslims are suffering
hear-news
player
print-icon

কুমিল্লায় হিন্দু-মুসলমান সবাই ব্যথিত

কুমিল্লায়-হিন্দু-মুসলমান-সবাই-ব্যথিত
মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অচিন্ত্য দাশ টিটু বলেন, ‘আজ আমরা হিন্দু-মুসলমান সবাই ব্যথিত। কারা এমন করল? কেন এমন করল? আমাদের বিশ্বাস, আসল অপরাধী ধরা পড়বে।’

প্রতিবছর উৎসবমুখর পরিবেশে দুর্গাপূজা উদযাপন করেন কুমিল্লার সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। তবে এ বছরের চিত্র ভিন্ন।

ম্লান হয়ে গেছে পূজার আনন্দ। অন্য ধর্মের মানুষের মনেও বিষাদের ছায়া। সবার মনে কাজ করছে আতঙ্ক।

কুমিল্লা নগরীর চকবাজার এলাকায় থাকেন অশোক রায়। পূজার সময় ঢাক বাজিয়ে বাড়তি আয় করেন।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ভাই, কী কমু? মনডা ভালো নাই। হেদিনের পর থাইক্কা আর ঢোল বাজাই না। আমার ৪৬ বছর বয়সে আমি এমন কাণ্ড কোনো সময় দেহি নাই। আমার ঢাকের পর্দা কুপিয়ে ছিঁড়ে ফেলেছে।’

গত বুধবার কুমিল্লা নগরীর নানুয়ার দিঘির উত্তর পাড়ের একটি পূজামণ্ডপে কোরআন শরিফ পাওয়ার অভিযোগ তোলার পর শহরে ছড়িয়ে পড়ে উত্তেজনা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে মোতায়েন করা হয় পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির বিপুলসংখ্যক সদস্য।

আলোচিত ওই মণ্ডপের পূজার আয়োজকরা জানান, সেখানে পবিত্র কোরআন শরিফ কী করে এলো, সে বিষয়ে তাদের কোনো ধারণা নেই। বুধবার সকালে বিষয়টি পূজারিদের নজরে আসে। এর আগে গভীর রাত পর্যন্ত পূজা উদযাপন শেষে মণ্ডপটি জনশূন্য ছিল।

এ ঘটনার পর দেশের বিভিন্ন স্থানে পূজামণ্ডপের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়। বেশ কয়েক জেলায় মোতায়েন করা হয়েছে বিজিবি। চাঁদপুরের একটি উপজেলায় ১৪৪ ধারাও জারি করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদ জানান, এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ৪০ জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে। তাদের মধ্যে ৩৯ জনকে পাঠানো হয়েছে কারাগারে।

মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক অচিন্ত্য দাশ টিটু বলেন, ‘আজ আমরা হিন্দু-মুসলমান সবাই ব্যথিত। কারা এমন করল? কেন এমন করল? আমাদের বিশ্বাস, আসল অপরাধী ধরা পড়বে।’

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সাবেক নির্বাহী সদস্য ও ক্রীড়া সংগঠক বদরুল হুদা জেনু নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সম্প্রীতির কুমিল্লায় এমন দাঙ্গা এক অশনিসংকেত। কুমিল্লার যারা সাবেক জেলা প্রশাসক, তারাও ফোন করে খবর নিয়েছেন। আমরা চাই যারা এ ঘটনার পেছনে আছে, তাদের গ্রেপ্তার করা হবে। দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হবে।’

কুমিল্লা প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি আবুল হাসানাত বাবুল বলেন, ‘এ ঘটনা আমাদের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ওপর কলঙ্ক লেপে দিল। আমরা শোকাহত। যে কুমিল্লাকে নিয়ে আমরা গর্ব করতাম, সেখানে এমন ঘটনা নজিরবিহীন।’

নগরের দেয়ালে ছবি এঁকে রাঙিয়ে তুলেছিলেন তরুণ শিল্পী জুনায়েদ মোস্তফা।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলার সাবেক ছাত্র জুনায়েদ বলেন, ‘শহরটাকে ক্যানভাস বানিয়ে আমি স্বপ্ন এঁকে যাই। আজ এই নগর সাম্প্রদায়িকতার বিষে নীল হয়ে উঠছে। যেকোনো উৎসব আমরা কুমিল্লাবাসী এক হয়ে উদযাপন করতাম। এবার কী হলো বুঝতে পারছি না।’

মন ভালো নেই রিকশাচালকদেরও। বুধবার থেকে শহরে মানুষের যাতায়াত কমে গেছে।

রিকশাচালক দেলোয়ার হোসেন বলেন, ‘ঝামেলার লাইগ্যা এ বছর আর পূজাডা জমল না। আমার জন্মের ৪০ বছরেও কোনো সময় দেখছি না কেউ মূর্তির পায়ের কাছে কোরআন শরিফ রাহে। আবার এইডাও দেখছি না কুমিল্লায় পূজার সময় মূর্তি ভাঙা হয়।’

কুমিল্লা ইমাম সমিতির সভাপতি ও মুন্সেফবাড়ী জামে মসজিদের খতিব মাওলানা মিজানুর রহমান বলেন, ‘পবিত্র কোরআন অবমাননার ঘটনায় আমাদের মনে কষ্ট হয়েছে। আবার এ ঘটনার জেরে যারা প্রতিমা ভাঙচুর করেছে, এটাও আমাদের কষ্ট দিয়েছে। আমরা এমন কুমিল্লা চাই না।’

আরও পড়ুন:
মিছিল থেকে পূজামণ্ডপে ইটপাটকেল
কুমিল্লার ঘটনার দায় সরকারকে নিতে হবে: জাফরুল্লাহ
জুমার পর চট্টগ্রামে বিক্ষোভ, ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
Former director of Chittagong Womens Chamber sentenced to 4 years in prison

চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বারের সাবেক পরিচালকের ৪ বছর কারাদণ্ড

চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বারের সাবেক পরিচালকের ৪ বছর কারাদণ্ড চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বারের সাবেক পরিচালক ফাতেমা বেগম।
সাজাপ্রাপ্ত ফাতেমা বেগম বর্তমানে পলাতক আছেন। তিনি নগরের পাঁচলাইশ থানার শুলকবহর আবদুল লতিফ রোডের মৃত জয়নাল আবেদীনের স্ত্রী।

ব্যবসায়ের অংশীদার করবেন এমন আশ্বাস দিয়ে মোহাম্মদ হোসেন নামে এক যুবকের কাছ থেকে ৫৫ লাখ টাকা নিয়েছিলেন চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বারের সাবেক পরিচালক ফাতেমা বেগম। কিন্তু ২০১৭ সালে টাকা দেয়ার পর দীর্ঘ সময় অতিক্রান্ত হলেও কোনো অংশীদারত্ব পাননি ওই যুবক। এমনকি টাকা নেয়ার কথাও অস্বীকার করেন ফাতেমা।

এ ঘটনায় ২০২০ সালে অর্থ আত্মসাৎ ও চেক প্রতারণার দায়ে ফাতেমার বিরুদ্ধে ছয়টি মামলা করেন ভুক্তভোগী মোহাম্মদ হোসেন। অবশেষে মামলার রায়ে উইম্যান চেম্বারের সাবেক পরিচালক ফাতেমা বেগমকে বিভিন্ন মেয়াদে মোট ৩ বছর ১০ মাসের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।

সোমবার বিকেলে চট্টগ্রামের যুগ্ম মহানগর দায়রা জজ ড. আবুল হাসনাতের আদালত এই রায় দেয়।

সাজাপ্রাপ্ত ফাতেমা বেগম বর্তমানে পলাতক আছেন। তিনি নগরের পাঁচলাইশ থানার শুলকবহর আবদুল লতিফ রোডের মৃত জয়নাল আবেদীনের স্ত্রী।

রায়ের বিষয়টি নিশ্চিত করে বাদী পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট জাফর ইকবাল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘অর্থ আত্মসাৎ ও চেক প্রতারণার ৬টি মামলায় আদালত বিভিন্ন মেয়াদে আসামি চট্টগ্রাম উইম্যান চেম্বারের সাবেক পরিচালক ফাতেমা বেগমকে মোট ৩ বছর ১০ মাস সাজা দিয়েছেন। পাশাপাশি ৫৫ লাখ টাকা ফেরত দেয়ার নির্দেশসহ তাকে ১ লাখ ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
ব্যাংক কর্মকর্তার ৩০ বছরের কারাদণ্ড
১৭৬ কোটি টাকা আত্মসাৎ: জামিন নিতে গিয়ে গ্রেপ্তার
অর্থ আত্মসাৎ: সোনালী ব্যাংকের সাবেক ব্যবস্থাপক কারাগারে
১০ লাখ টাকা আত্মসাতে বিআইডব্লিউটিএ কর্মচারীর কারাদণ্ড
পক্ষে রায় এনে দেয়ার নামে ‘অর্থ আত্মসাৎ’, আদালতে মামলা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Attempted murder case at UNO Summons to testify of investigating officer

ইউএনওকে হত্যাচেষ্টা মামলা: তদন্ত কর্মকর্তার সাক্ষ্য নিতে সমন

ইউএনওকে হত্যাচেষ্টা মামলা: তদন্ত কর্মকর্তার সাক্ষ্য নিতে সমন
আদালত পুলিশ পরিদর্শক মনিরুজ্জামান বলেন, জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম (আমলি আদালত-৭) আদালতের বিচারক আগামী ৩০ মে এই মামলার প্রথম তদন্তকারী কর্মকর্তাকে আদালতে হাজির হয়ে সাক্ষ্য দেয়ার জন্য সমন জারি করেছেন। একই দিনে এই মামলার অভিযোগপত্র দেয়া কর্মকর্তাকেও আদালতে হাজির হয়ে সাক্ষ্য দিতে বলা হয়েছে।

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের সাবেক ইউএনও এবং তার বাবাকে হত্যাচেষ্টা মামলার দুই তদন্তকারী কর্মকর্তাকে আদালতে হাজির হয়ে সাক্ষ্য দিতে সমন জারি করেছে আদালত।

দিনাজপুর আদালত পুলিশ পরিদর্শক মনিরুজ্জামান নিউজবাংলাকে সোমবার বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম (আমলি আদালত-৭) আদালতের বিচারক আগামী ৩০ মে এই মামলার প্রথম তদন্তকারী কর্মকর্তাকে আদালতে হাজির হয়ে সাক্ষ্য দেয়ার জন্য সমন জারি করেছেন। একই দিনে এই মামলার অভিযোগপত্র দেয়া কর্মকর্তাকেও আদালতে হাজির হয়ে সাক্ষ্য দিতে বলা হয়েছে। এই দুজনের সাক্ষ্য শেষ হলে এই মামলার যুক্তিতর্ক শুরু হবে।

পুলিশের একটি সূত্র জানায়, এই মামলার ৬১ জন সাক্ষীর মধ্যে ৫৮ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ শেষ হয়েছে। এখন মামলার প্রথম তদন্তকারী কর্মকর্তা ঘোড়াঘাট থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মমিনুল ইসলাম, অভিযোগপত্র জমা দেয়া তদন্তকারী কর্মকর্তা তৎকালীন ডিবি পুলিশ পরিদর্শক জাফর ইমামের সাক্ষ্য গ্রহণ হলেই মামলার সাক্ষ্যপর্ব শেষ হবে। পরে রায়ের তারিখ ঠিক করবেন বিচারক।

২০২০ সালের ১ সেপ্টেম্বর রাতে তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়াহেদা খানম ও তার বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা ওমর আলী শেখের ওপর হামলা হয়। সরকারি বাসভবনে ঢুকে তাদের হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে পালিয়ে যায় উপজেলা পরিষদের তখনকার মালি রবিউল ইসলাম।

এ ঘটনায় ওয়াহেদা খানমের ভাই পুলিশ পরিদর্শক ফরিদ উদ্দীন শেখ বাদী হয়ে পরের দিন ঘোড়াঘাট থানায় মামলা করেন। পরে ওই মামলাটি ডিবির কাছে হস্তান্তর করা হয়। এই মামলায় মালি রবিউল ইসলামকে গ্রেপ্তার করা হয়। মামলার একমাত্র আসামি রবিউল কারাগারে আছেন।

আরও পড়ুন:
ইউএনওর গাড়িতে পিষ্ট সাংবাদিক
কৃষককে গুলি করে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ
২০০ টাকা নিয়ে বাকবিতণ্ডা, চা দোকানির গলায় পোচ
ধর্ষণের অভিযোগে ইউএনওকে প্রত্যাহার
কপালে টিপ, হত্যাচেষ্টার অভিযোগ শিক্ষকের

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Ordinary peoples confidence in rising commodity prices Ranga

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিতে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস: রাঙ্গা

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিতে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস: রাঙ্গা রংপুর জেলা জাতীয় পার্টি কার্যালয়ে সোমবার সন্ধ্যায় দলের বর্ধিত সভায় বক্তব্য দেন মসিউর রহমান রাঙ্গা। ছবি: নিউজবাংলা
রাঙ্গা বলেন, বিভিন্ন দপ্তরে সর্বগ্রাসী দুর্নীতির কারণে সরকার দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিতে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। এতে সরকারের কাছ থেকে সাধারণ মানুষ দূরে চলে যাচ্ছে। এটা সরকারকে বুঝতে হবে।

দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির কারণে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে বলে মন্তব্য করেছেন সংসদে বিরোধীদলীয় চিফ হুইপ ও জাতীয় পার্টির সাবেক মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা।

সোমবার সন্ধ্যায় রংপুর সেন্ট্রাল রোডে দলীয় কার্যালয়ে জেলা জাতীয় পার্টির বর্ধিত সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

রংপুর জেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি রাঙ্গা বলেন, বিভিন্ন দপ্তরে সর্বগ্রাসী দুর্নীতির কারণে সরকার দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না। দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধিতে সাধারণ মানুষের নাভিশ্বাস উঠেছে। এতে সরকারের কাছ থেকে সাধারণ মানুষ দূরে চলে যাচ্ছে। এটা সরকারকে বুঝতে হবে।

নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে বৃহত্তর রংপুরের ২২ আসন ফিরিয়ে আনতে সবাইকে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে। যেখানে কমিটি হয়নি, সেখানে কমিটি করতে হবে। যারা ভালো করবেন, তারা কমিটিতে ভালো জায়গায় থাকবেন।

সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য ও রংপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, জেলা জাতীয় পার্টির সহসভাপতি আজমল হোসেন লেবু ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক।

আরও পড়ুন:
দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির পেছনে বিএনপির হাত আছে: যুবলীগ চেয়ারম্যান
সুলভ মূল্যে দুধ, ডিম ও মাংস পাবেন নগরবাসী
অকারণে বাড়ছে ছোলার দাম
দ্রব্যমূল্য নিয়ে কাউকে ফায়দা লুটতে দেয়া হবে না: কৃষিমন্ত্রী
রমজানে বাড়বে না দাম, মিলছে উপহারও

মন্তব্য

বাংলাদেশ
3 arrested for snatching bank money

ব্যাংকের টাকা ছিনতাই করতে গিয়ে আটক ৩

ব্যাংকের টাকা ছিনতাই করতে গিয়ে আটক ৩ ব্যাংকের টাকা ছিনতাই চেষ্টার দায়ে আটক তিনজন।
জয়পুরহাট থানার ওসি এ কে এম আলমগীর জাহান জানান, আটক তিনজনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আর ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হওয়া ১৩ লাখ টাকা আদালতের মাধ্যমে এজেন্ট ব্যাংক নিয়ে যেতে পারবে।

জয়পুরহাটে ইসলামী ব্যাংকের এজেন্ট শাখা ব্যবস্থাপকের কাছ থেকে ১৩ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের সময় ধারালো অস্ত্রসহ ৩ ছিনতাইকারীকে আটক করেছে পুলিশ। জয়পুরহাট সদর উপজেলার চান্দা ব্রিজ এলাকা থেকে তাদের আটক করা হয়।

সোমবার এক প্রেস ব্রিফিংয়ে জয়পুরহাট থানার ওসি এ কে এম আলমগীর জাহান এ তথ্য জানিয়েছেন।

আটক ছিনতাইকারীদের মধ্যে ৪০ বছরের জামিউল ইসলাম জেলা শহরের আমতলী এলাকার মৃত মজিবর রহমানের ছেলে, ৩১ বছর বয়সী শামসুজ্জোহা ধানমন্ডি এলাকার রফিকুল ইসলামের ছেলে এবং ৩৪ বছরের সুমন হাজি মাদ্রাসা রোড এলাকার মৃত আফজাল হোসেনের ছেলে।

ওসি আলমগীর জাহান জানান, গত রোববার ইসলামী ব্যাংকের জেলা শাখা থেকে কয়েক লাখ টাকা তুলে জামালগঞ্জের মাহা ট্রেডিং কর্পোরেশনের এজেন্ট ব্যাংকে নেয়া হবে এ কথা এজেন্টের গাড়িচালক সুমন জানতেন। ওই টাকা লুট করতে ছিনতাইকারীদের সঙ্গে পরিকল্পনা করেন তিনি।

রোববার এজেন্ট শাখার ম্যানেজার আবুল হোসেন তার সহকারীকে নিয়ে ব্যাংক থেকে ১৩ লাখ টাকা তুলে মোটরসাইকেলে চড়ে চান্দা ব্রিজ এলাকায় পৌঁছালে পেছন থেকে দুটি মোটরসাইকেলে আসা ৬ জন ধারালো ছুরি দেখিয়ে তাদের পথরোধ করে। একপর্যায়ে চোখে মরিচের গুঁড়া ছিটিয়ে টাকাগুলো ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে তারা।

এ সময় ভুক্তভোগীরা চিৎকার শুরু করলে পথচারী ও আশপাশের মানুষ দৌড়ে এসে দুজনকে আটকের পর মারধর করে পুলিশে খবর দেয়।

পুলিশ ওই দুজনকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদের পর আরও একজনকে আটক করতে সক্ষম হয়। ওই তিনজনকে আদালতে পাঠানো হয়েছে। আর ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার হওয়া ১৩ লাখ টাকা আদালতের মাধ্যমে এজেন্ট ব্যাংক নিয়ে যেতে পারবে বলেও জানান ওসি।

আরও পড়ুন:
পল্টনে বিএনপি নেতাকে ছুরিকাঘাত
এসএ পরিবহনের হেলপারকে ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাত
রাজধানীতে চাঁদাবাজ-ছিনতাইকারী চক্রের ৫৩ সদস্য গ্রেপ্তার
রাজধানীতে ছিনতাইকারী-অজ্ঞান পার্টির ২৭ সদস্য গ্রেপ্তার
খুন করে অটো ছিনতাই, বিক্রি ৯ হাজারে

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Rape case in boyfriends name after suicide threat

আত্মহত্যার হুমকির পর প্রেমিকের নামে ধর্ষণের মামলা

আত্মহত্যার হুমকির পর প্রেমিকের নামে ধর্ষণের মামলা
মামলার বরাত দিয়ে পরিদর্শক জহিরুল জানান, দেলোয়ারের সঙ্গে বাদীর প্রেমের সম্পর্ক চলছে ১৩ বছর ধরে। বিয়ের আশ্বাস দেয়ায় তার সঙ্গে বাদীর একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক হয়। হঠাৎ বাদী জানতে পারেন আগামী বৃহস্পতিবার পারিবারের পছন্দে দেলোয়ার অন্য কাউকে বিয়ে করছেন।

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে বিয়ের দাবিতে এক যুবকের বাড়িতে অবস্থান নেয়া তরুণী ওই যুবকের নামে ধর্ষণের মামলা করেছেন।

ঈশ্বরগঞ্জ থানায় সোমবার দুপুরে তিনি ওই মামলা করেন বলে জানান থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জহিরুল ইসলাম মুন্না।

এর আগে শনিবার রাত ৮টা থেকে উপজেলার উচাখিলা ইউনিয়নের চরআলগী গ্রামে দেলোয়ার হোসেন নামে ওই যুবকের বাড়ির সামনে অবস্থান নেন ওই তরুণী। দেলোয়ার তাকে বিয়ে না করলে আত্মহত্যা করবেন বলেও হুমকি দেন। তবে বাড়িতে নেই দেলোয়ার।

মামলার বরাত দিয়ে পরিদর্শক জহিরুল জানান, দেলোয়ারের সঙ্গে বাদীর প্রেমের সম্পর্ক চলছে ১৩ বছর ধরে। বিয়ের আশ্বাস দেয়ায় তার সঙ্গে বাদীর একাধিকবার শারীরিক সম্পর্ক হয়। হঠাৎ বাদী জানতে পারেন আগামী বৃহস্পতিবার পারিবারের পছন্দে দেলোয়ার অন্য কাউকে বিয়ে করছেন।

এ কারণে তিনি বিয়ের দাবিতে দেলোয়ারের বাড়িতে অবস্থান নেন।

সোমবার সন্ধ্যায় মেয়ের বড় ভাই নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আমার পরামর্শে বোন অনশন ভেঙেছে। তাকে বিয়ে না করলে আত্মহত্যা করবে বলে জানিয়েছে। এখন সে ধর্ষণ মামলা করে আইনের আশ্রয় নিয়েছে।’

থানার ওসি পীরজাদা শেখ মোহাম্মদ মোস্তাছিনুর রহমান বলেন, ‘মামলার পর তরুণীর ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। আসামির বাড়িতে পুলিশ পাঠিয়ে তাকে পাওয়া যায়নি। তথ্য-প্রযুক্তির সহায়তায় তাকে গ্রেপ্তার করতে চেষ্টা চলছে।’

আরও পড়ুন:
‘নিষিদ্ধ প্রেম’ এক দশক পর শেষ হলো মৃত্যুতে
জোর করে বিয়ে গড়াল তরুণ-তরুণীর বিষ পানে
স্ত্রী-সন্তান রেখে ছাত্রীকে নিয়ে পালালেন শিক্ষক
বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অবস্থান নেয়া তরুণী কারাগারে
বিয়ের দাবিতে অবস্থান, তরুণীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আদালতের নির্দেশ

মন্তব্য

বাংলাদেশ
The fire at Thamal Square Pharma lasted for 6 hours

৭ ঘণ্টা পুড়িয়ে থামল স্কয়ার ফার্মার আগুন

৭ ঘণ্টা পুড়িয়ে থামল স্কয়ার ফার্মার আগুন
ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক (ঢাকা বিভাগ) দিনমনি শর্মা জানান, সোমবার সাড়ে ৭টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে এখন পর্যন্ত হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

ফায়ার সার্ভিসের ১৯টি ইউনিটের সাত ঘণ্টার চেষ্টায় গাজীপুরের স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যাল কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

ফায়ার সার্ভিসের উপপরিচালক (ঢাকা বিভাগ) দিনমনি শর্মা নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সোমবার সাড়ে ৭টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। তবে এখন পর্যন্ত হতাহতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

এর আগে দুপুর ১২টার দিকে কারখানার লার্জ ভলিউম প্যারেন্টাল ইউনিটে আগুন লাগে।

কালিয়াকৈর ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন মাস্টার সাইফুল ইসলাম নিউজবাংলাকে জানান, প্রথমে কালিয়াকৈর ফায়ার সার্ভিসের তিনটি ও মির্জাপুরের একটি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ শুরু করে।

আগুন বাড়তে থাকলে কালিয়াকৈর থেকে আরও একটি, মির্জাপুর থেকে একটি, টাঙ্গাইলের সখিপুর থেকে দুটি, সাভার ইপিজেড থেকে দুটি, জয়দেবপুরের দুটি ও ফায়ার সার্ভিসের হেডকোয়ার্টার থেকে দুটি ইউনিট এসে যোগ দেয়।

স্টেশন মাস্টার বলেন, ‘কারখানার নিচতলা, দ্বিতীয় তলা, তৃতীয় তলাসহ প্রতিটি ফ্লোরে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। যে ভবনটিতে আগুন লাগে সেখানে ওষুধ তৈরির নানা কেমিক্যাল ও দাহ্য পদার্থ রয়েছে। যে কারণে আগুন নিয়ন্ত্রণে বেগ পেতে হয়।’

এ ঘটনার তথ্য ও ছবি সংগ্রহে কারখানা এলাকায় সংবাদকর্মীদের বাধা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে।

চ্যানেল-২৪-এর গাজীপুর প্রতিনিধি রফিক খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘আগুন লাগার পরপরই ঘটনাস্থলে ছুটে আসি। তবে কারখানার গেট দিয়ে ভেতরে ঢুকতে দেয়া হয়নি। পাশের সিমেন্ট কারখানা থেকে অনেক কষ্টে ফুটজ ও ছবি সংগ্রহ করছি।

তবে এই অভিযোগের বিষয়ে কারখানার নিরাপত্তাসংশ্লিষ্ট কেউ কথা বলতে চাননি।

আরও পড়ুন:
৭ ঘণ্টা ধরে পুড়ছে স্কয়ার ফার্মা
কালিয়াকৈরে আগুনে পুড়ছে স্কয়ার ফার্মা
১ ঘণ্টা পুড়িয়ে থামল পোলট্রি ফিডের দোকানের আগুন
পোল্ট্রি ফিডের দোকানে আগুন
গ্যাসের লিকেজের আগুনে দগ্ধ আনোয়ারের মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Khulna Shipyard is building two high capacity tugboats

উচ্চক্ষমতার দুটি টাগবোট বানাচ্ছে খুলনা শিপইয়ার্ড

উচ্চক্ষমতার দুটি টাগবোট বানাচ্ছে খুলনা শিপইয়ার্ড খুলনা শিপইয়ার্ডে সোমবার দুপুরে দুইটি টাগবোটের ক্লাসিফিকেশন সনদপত্র হস্তান্তর করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা
খুলনা শিপইয়ার্ডে সোমবার দুপুরে দুটি টাগবোটের কিল লেয়িং উদ্বোধন করেন পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ সোহায়েল।

পায়রা বন্দরের জন্য উচ্চক্ষমতার দুটি টাগবোট নির্মাণ করছে খুলনা শিপইয়ার্ড।

৭০ টন বোলার্ড পুলবিশিষ্ট দুটি টাগবোট তৈরি করা হবে। নির্মাণ শেষ হলে এ দুটি হবে দেশের ইতিহাসে সবচেয়ে বেশি বোলার্ড পুল ক্ষমতার টাগবোট।

সোমবার দুপুরে খুলনা শিপইয়ার্ডে দুটি টাগবোটের কিল লেয়িং উদ্বোধন করেন পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল মোহাম্মদ সোহায়েল।

তিনি বলেন, পায়রা বন্দরের মাধ্যমে এ অঞ্চলের মানুষের ভাগ্য পরিবর্তন হতে শুরু করেছে। অচিরেই এটি দেশের আমদানি-রপ্তানির কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হতে যাচ্ছে। এই বন্দরকে কেন্দ্র করে প্রচুর দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ আসছে।

পায়রা বন্দর চেয়ারম্যান বলেন, জাহাজ নির্মাণে খুলনা শিপইয়ার্ডের ঐতিহ্য রয়েছে। ভবিষ্যতেও পায়রা বন্দর ও খুলনা শিপইয়ার্ড পারস্পরিক উন্নয়নে এক সঙ্গে কাজ করবে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন খুলনা শিপইয়ার্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কমডোর এম সামছুল আজিজ। উপস্থিত ছিলেন পায়রা বন্দর কর্তৃপক্ষের সদস্য (হারবার অ্যান্ড মেরিন) কমডোর এম মামুনুর রশীদসহ শিপইয়ার্ডের কর্মকর্তারা।

খুলনা শিপইয়ার্ড সূত্রে জানা যায়, সর্বাধুনিক প্রযুক্তির টাগ বোট দুটিতে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি সংযোজন হবে। এটা আন্তর্জাতিক সমুদ্রসীমায় যাতায়াতে সক্ষম।

বোট দুটি বন্দরের সক্ষমতা বহুগুণ বাড়াবে। এ ছাড়া পায়রা বন্দরকে আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন বন্দরে পরিণত করতে অগ্রণী ভূমিকা রাখবে।

মন্তব্য

p
উপরে