টক-মিষ্টির লাল তেঁতুল

টক-মিষ্টির লাল তেঁতুল

সারা বছরই গাছ তিনটিতে দেখা যায়, থোকায় থোকায় তেঁতুল ধরে আছে। শিশু-কিশোররা সময়-অসময় নেই, উঠে পড়ে তেঁতুল পাড়তে। কেউ কেউ কুড়িয়ে নেয় গোড়ায় পড়ে থাকা তেঁতুল। তেঁতুল হাতে নিয়েই আগে দেখা চাই, ভেতরে কতটা লাল।

কাঁচা তেঁতুলের ভেতরটা হবে সবুজ আর পাকা তেঁতুলের গাঢ় খয়েরি। এভাবে দেখেই অভ্যস্ত এ এলাকার মানুষ।

তবে কুষ্টিয়ার খোকসায় হিজলাবট গ্রামে তিনটি প্রাচীন গাছ আছে যেগুলোর তেঁতুল দেখে বিস্মিত হতে হয়। বাইরে থেকে কিছু বোঝা যায় না। তবে ভেঙে দেখা যায় এই তেঁতুলের ভেতরটা একদম লাল।

সারা বছরই গাছ তিনটিতে দেখা যায়, থোকায় থোকায় তেঁতুল ধরে আছে। শিশু-কিশোররা সময়-অসময় নেই, উঠে পড়ে তেঁতুল পাড়তে। কেউ কেউ কুড়িয়ে নেয় গোড়ায় পড়ে থাকা তেঁতুল।

টক-মিষ্টির লাল তেঁতুল

তেঁতুল হাতে নিয়েই আগে দেখা চাই, ভেতরে কতটা লাল। বার বার দেখেও যেন বিস্ময়ের ঘোর কাটে না।

এই তিন তেঁতুলগাছ নিয়ে নানান গল্পও ছড়িয়ে আছে গ্রামবাসীর মুখে মুখে।

এলাকার প্রবীণ মুন্সী মোকাররম হোসেন ঝান্টু নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এই হিজলাবট এলাকা একসময় জনশূন্য ছিল। বসতি ছিল গড়াই নদীর ধারে। নদী ভাঙতে ভাঙতে বসতি এদিকে সরে আসে। ব্রিটিশরা শুরু করে নীল চাষ। সেই সময়ের গাছ এগুলো।’

ঝান্টু জানান, এই তিন তেঁতুল গাছের মালিকানা কোনো ব্যক্তির নয়। যে যার মতো পেড়ে নেয়।

টক-মিষ্টির লাল তেঁতুল

এমন ব্যতিক্রমী তেঁতুলের কথা শুনে আশপাশের এলাকা থেকেও অনেকে আসেন নিজে একবার দেখতে।

স্থানীয়দের দাবি, তেঁতুল গাছগুলো যেন সংরক্ষণ করা হয়।

ওসমানপুর ইউনিয়নের সাবেক সদস্য জাহানারা বেগম বলেন, ‘উদ্যোগ সরকারি হোক আর বেসরকারি, তেঁতুল গাছ সংরক্ষণ করতে হবে।’

স্থানীয় সাংবাদিক হুমায়ুন কবীর জানান, দেখতে যেমন সুন্দর তেমনি এর ঔষধি গুনও আছে। এই গাছগুলো টিকিয়ে রাখা দরকার। গাছ ঘিরে পর্যটন সম্ভাবনাও আছে।

স্থানীয় জাহিদ জামান বলেন, ‘রঙ লাল হলেও এই তেঁতুলের আলাদা গন্ধ নেই। স্বাদও অন্য তেঁতুলের মতোই। তবে কোনো কোনো সময় টকের সঙ্গে মিষ্টি স্বাদও পাওয়া যায়। আর পাকলে এই তেঁতুল গুড়ের মতো রঙ ধারণ করে, মিষ্টতাও বাড়ে।’

কুষ্টিয়া সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক আহসান কবীর রানা বলেন, ‘প্রজননের সময় ক্রোমজমের বিন্যাসে ক্রসিং ওভার হওয়ায় নতুন বৈশিষ্ট্য সৃষ্টি হয়ে থাকে। এই তেঁতুলের ক্ষেত্রেও এটা হতে পারে। অনেক সময় নতুন বৈশিষ্ট্য টেকসই হয় আবার বিলুপ্তও হয়ে যায়।

‘এসব প্রকৃতির খেলা। তবে এই লাল তেঁতুলের ক্ষেত্রে কী ঘটেছে তা জিনগত বিন্যাস পরীক্ষা করলেই নিশ্চিত হওয়া যাবে। গবেষণা এবং সংরক্ষণের জন্য এই পরীক্ষা করা উচিত।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ফেরি দুর্ঘটনার দ্বিতীয় দিনেও দৌলতদিয়ায় যানজট

ফেরি দুর্ঘটনার দ্বিতীয় দিনেও দৌলতদিয়ায় যানজট

পাটুরিয়ার ৫ নম্বর ঘাটে আমানত শাহ ফেরিটি আংশিক ডুবে যাওয়ায় দৌলতিয়া প্রান্তেও সৃষ্টি হয়েছে তীব্র যানজট। ছবি: নিউজবাংলা

কাভার্ডভ্যানের চালক হাসান বলেন, ‘ঘাট এলাকায় সব সময়ই আমাদের দুর্ভোগ লেগে থাকে। গত রাত ৪টার দিকে ঘাটে এসে এখনো ফেরিতে উঠতে পারি নাই। তারপর আবার ওই পাশের ঘাটে ফেরি উল্টে গেছে। এখন কয়দিনে যে ফেরি পাব কে জানে।’

মানিকগঞ্জের পাটুরিয়ার ৫ নম্বর ঘাটে আমানত শাহ ফেরিটির আংশিক ডুবে যাওয়ায় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌপথের দৌলতিয়া প্রান্তেও সৃষ্টি হয়েছে তীব্র যানজট।

ঘাট এলাকায় বৃহস্পতিবার সকালে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, দৌলতদিয়া ঘাট থেকে ৪ কিলোমিটার পণ্যবাহী ট্রাকের দীর্ঘ সারি। প্রায় আড়াই কিলোমিটার অংশজুড়ে বাস ও প্রাইভেট কারের জট রয়েছে।

এ ছাড়া দৌলতদিয়া থেকে সাড়ে ১৩ কিলোমিটার দূরে গোয়ালন্দ মোড় এলাকায় ঢাকা-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের প্রায় ৩ কিলোমিটার অংশজুড়ে পচনশীল পণ্যবাহী ট্রাক ও কাভার্ডভ্যানের দীর্ঘ সারি দেখা গেছে।

ঢাকাগামী পূর্বাশা পরিবহনের যাত্রী স্নেহা বলেন, ‘প্রায় ৪ ঘণ্টা ঘাট এলাকায় এসে বসে আছি। এখনো ফেরিতে উঠতে পারিনি। কখন ফেরিতে উঠতে পারব জানি না।’

ফেরি দুর্ঘটনার দ্বিতীয় দিনেও দৌলতদিয়ায় যানজট

কাভার্ডভ্যানের চালক হাসান বলেন, ‘ঘাট এলাকায় সব সময়ই আমাদের দুর্ভোগ লেগে থাকে। গত রাত ৪টার দিকে ঘাটে এসে এখনো ফেরিতে উঠতে পারি নাই। তারপর আবার ওই পাশের ঘাটে ফেরি উল্টে গেছে। এখন কয়দিনে যে ফেরি পাব কে জানে।’

ঢাকা-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কের কল্যাণপুরে আটকে থাকা এক ট্রাকচালক জানান, রাত থেকে সেখানে আটকে আছেন। ফাঁকা রাস্তায় হোটেল, দোকান, ওয়াশরুম কিছুই নেই।

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে এখন ১৮টি ফেরি চলছে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) আরিচা কার্যালয়ের নির্বাহী প্রকৌশলী (ড্রেজিং) শরিফুল ইসলাম জানান, ফেরি ডোবার পর থেকে উদ্ধার অভিযান চলছে। বুধবার রাত ৮টা পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান চালিয়ে ৫টি ট্রাক উদ্ধার করা হয়। পানির নিচে আরও ৫টি ট্রাক শনাক্ত করা হয়েছে।

সবশেষ বৃহস্পতিবার বেলা দেড়টার দিকে আরও একটি ট্রাক উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয় উদ্ধার অভিযানে যুক্ত হলে উদ্ধার অভিযান তাড়াতাড়ি শেষ হবে বলেও তিনি জানান।

বুধবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া ঘাট থেকে ১৭টি পণ্যবাহী ট্রাক, কাভার্ডভ্যান, মোটরসাইকেল ও যাত্রী নিয়ে পাটুরিয়ার ৫ নম্বর ঘাটে আমানত শাহ নামে রো রো ফেরিটি নোঙর করছিল। ফেরি থেকে দু-তিনটি যানবাহন নামার পরপরই এটি কাত হয়ে ডুবে যায়।

শেয়ার করুন

সেতুর রেলিংয়ে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় চালক নিহত

সেতুর রেলিংয়ে মোটরসাইকেলের ধাক্কায় চালক নিহত

তেঁতুলিয়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের স্টেশন কর্মকর্তা মো. আব্দুল্লাহ জানান, ধারণা করা হচ্ছে কুয়াশার কারণে দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে যাওয়ায় মোটরসাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারান আবু শাহ। এ কারণেই দুর্ঘটনা ঘটে। 

পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায় সেতুর রেলিংয়ে ধাক্কা লেগে মোটরসাইকেলচালক নিহত হয়েছেন।

তেঁতুলিয়ার বুড়াবুড়ি ইউনিয়নের ভেরসা সেতুতে বুধবার গভীর রাতে এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতের নাম আবু শাহ মিনু। তার বাড়ি একই ইউনিয়নের উত্তর বালাবাড়ী এলাকায়।

তেঁতুলিয়া হাইওয়ে থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আশরাফুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

স্থানীয়দের বরাতে তিনি জানান, মোটরসাইকেলে ভজনপুর ইউনিয়ন থেকে বুড়াবুড়ি ইউনিয়নে নিজ বাড়ির দিকে যাচ্ছিলেন আবু শাহ। পথে ভেরসা সেতুর কাছে তিনি নিয়ন্ত্রণ হারালে মোটরসাইকেল গিয়ে সেতুর রেলিংয়ে ধাক্কা লেগে উল্টে যায়। ছিটকে পড়ে গুরুতর আহত হন আবু শাহ।

স্থানীয়রা ফায়ার সার্ভিসে খবর দিলে কর্মীরা গিয়ে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়। সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

তেঁতুলিয়া ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের স্টেশন কর্মকর্তা মো. আব্দুল্লাহ জানান, ধারণা করা হচ্ছে কুয়াশার কারণে দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে যাওয়ায় মোটরসাইকেলের নিয়ন্ত্রণ হারান আবু শাহ। এ কারণেই দুর্ঘটনা ঘটে।

শেয়ার করুন

ট্রেনে ট্রাকের ধাক্কা, সাড়ে ৫ ঘণ্টা পর সচল রেললাইন

ট্রেনে ট্রাকের ধাক্কা, সাড়ে ৫ ঘণ্টা পর সচল রেললাইন

পাবনা-রাজশাহী রেলরুটে সাড়ে ৫ ঘণ্টা পর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) শাহীদুল ইসলাম বলেন, ‘দুর্ঘটনার পরই বিকল্প ইঞ্জিন লাগিয়ে ট্রেনটি চালানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। এখন রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক রয়েছে।’

পাবনায় ট্রেনে চলন্ত ট্রাকের ধাক্কায় পাবনা-রাজশাহী রেলরুটে সাড়ে ৫ ঘণ্টা পর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

জেলার মহেন্দ্রপুর রেলক্রসিং মোড়ে বৃহস্পতিবার ভোর ৬টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঢালারচর এক্সপ্রেস ট্রেনটি ঘটনাস্থল থেকে ছেড়ে যায়।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা (ডিটিও) আনোয়ার হোসেন জানান, বৃহস্পতিবার সকালে পাবনার ঈশ্বরদী রেলওয়ে স্টেশন থেকে ঢালারচরের উদ্দেশে ছেড়ে যায় আন্তনগর ঢালারচর এক্সপ্রেস। ট্রেনটি পাবনা স্টেশন পার হয়ে মহেন্দ্রপুর রেলক্রসিং মোড়ে পৌঁছালে একটি ট্রাক ট্রেনটিকে ধাক্কা দেয়।

খবর পেয়ে পাকশী বিভাগীয় রেলওয়ে কর্মকর্তারা ঘটনাস্থলে যান। তবে এ ঘটনায় কোনো হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি।

সদর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আমিনুল ইসলাম বলেন, ট্রেন ও ট্রাকের সংঘর্ষ হওয়ায় রাস্তার দুই পাশে যানজট তৈরি হলেও ট্রেনটি ছেড়ে যাওয়ার পর এখন আর যানজট নেই। দুর্ঘটনায় দুমড়েমুচড়ে যাওয়া ট্রাকটি ঘটনাস্থলে রয়েছে।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের পাকশী বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) শাহীদুল ইসলাম বলেন, ‘দুর্ঘটনার পরই বিকল্প ইঞ্জিন লাগিয়ে ট্রেনটি চালানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। এখন রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক রয়েছে।’

শেয়ার করুন

দিনমজুরকে হত্যায় আসামির যাবজ্জীবন

দিনমজুরকে হত্যায় আসামির যাবজ্জীবন

খুলনায় দিনমজুরকে হত্যায় এক আসামির যাবজ্জীবন। ছবি: নিউজবাংলা

২০১৭ সা‌লের ১ জুন সকা‌লে নন্দনপুর এলাকার ই‌টভাটার পাশে রাজের বস্তাবন্দি মরদেহ পাওয়া যায়। এ ঘটনায় গ্রেপ্তার করা হয় আসামি জামসেদকে। আদালতে দেয়া স্বীকারোক্তিতে তিনি জানান, পূর্ব বিরোধের জেরে রাজকে হত্যা করেন।

খুলনার রূপসায় চার বছর আগের দিনমজুর রাজ খা হত্যা মামলার এক আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। খালাস দেয়া হয়েছে আরেক আসামিকে।

খুলনা জেলা ও দায়রা জজ আদাল‌তের বিচারক ম‌শিউর রহমান চৌধুরী বৃহস্প‌তিবার এ রায় ঘোষণা ক‌রেন। রায় ঘোষণার সময় আসা‌মিরা আদাল‌তে উপ‌স্থিত ছি‌লেন।

যাবজ্জীবন কারাদণ্ড পাওয়া আসামি হলেন র‌হিমনগর এলাকার জাম‌সেদ ওর‌ফে জা‌বেদ মল্লিক। আর খালাস পাওয়া আসামি হলেন মো. মিজা‌ন।

রাষ্ট্রপ‌ক্ষের আইনজীবী এনামুল হক রা‌য়ের বিষয়‌টি নি‌শ্চিত ক‌রে‌ছেন।

২০১৭ সা‌লের ১ জুন সকা‌লে নন্দনপুর এলাকার ই‌টভাটার পাশে বস্তাবন্দি মস্তকবিহীন মরদেহ পাওয়া যায়। সে সময় রূপসা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আব্দুল খা‌লেক মরদেহটির সন্ধান পান। তিনি অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসা‌মি‌ করে মামলা ক‌রেন।

এর আ‌গে রাজ খার বাবা আমীর আলী খা ছে‌লে নি‌খোঁজ জানিয়েছে রূপসা থানায় এক‌টি জি‌ডি ক‌রেন। মরদেহ উদ্ধারের খবর শুনে তিনি গিয়ে সেটি রাজ খার বলে শনাক্ত করেন।

এর পর তদন্তে জাম‌সেদের সংশ্লিষ্টতা বিষয়টি সামনে আসলে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। আদালতে তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিও দেন। তিনি জানান, পূর্ব বিরোধের জেরে রাজকে তিনি হত্যা করেন।

২০১৯ সালের ২৯ অক্টোবর পুলিশ আদালতে চার্জশিট জমা দেয়। ২৯ জনের স্বাক্ষ্য নিয়ে আদালত এই রায় দিয়েছে।

শেয়ার করুন

মাকে পিটিয়ে হত্যা করায় মৃত্যুদণ্ড

মাকে পিটিয়ে হত্যা করায় মৃত্যুদণ্ড

মাকে হত্যা করায় আসামি জিয়াউল হককে মৃত্যুদণ্ড দেয় আদালত। ছবি: নিউজবাংলা

২০১৮ সালের ১৩ জুন জিয়াউল হক তার ছোট ভাই জুবায়ের খন্দকারের কাছে কিছু টাকা চায়। টাকা না দেয়ায় জুবায়েরকে ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে মারতে তেড়ে আসেন জিয়াউল। এ সময় তাদের মা জহুরা বেগম ছোট ছেলেকে বাঁচাতে গেলে জিয়াউল তার মাথায় ব্যাট দিয়ে এলোপাতাড়ি আঘাত করতে থাকেন।

গাইবান্ধা সদর উপজেলায় বৃদ্ধা মাকে পিটিয়ে হত্যার দায়ে জিয়াউল হককে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে আদালত।

জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক দিলীপ কুমার ভৌমিক বৃহস্পতিবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আসামির উপস্থিতিতে এ রায় দেন।

আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (পিপি) ফারুক আহমেদ প্রিন্স বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

জিয়াউল হক সদর উপজেলার শিবপুর গ্রামের ছেলে।

২০১৮ সালের ১৩ জুন জিয়াউল হক তার ছোট ভাই জুবায়ের খন্দকারের কাছে কিছু টাকা চায়। টাকা না দেয়ায় জুবায়েরকে ক্রিকেট ব্যাট দিয়ে মারতে তেড়ে আসেন জিয়াউল।

এ সময় তাদের মা জহুরা বেগম ছোট ছেলেকে বাঁচাতে গেলে জিয়াউল তার মাথায় ব্যাট দিয়ে এলোপাতাড়ি আঘাত করতে থাকেন। আশপাশের লোকজন আহত জহুরাকে সদর হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনার পরদিন জহুরার স্বামী নুরুল ইসলাম জিয়াউল হককে একমাত্র আসামি করে থানায় মামলা করেন। পরে অভিযান চালিয়ে পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

শেয়ার করুন

‘অপশক্তিকে আর ছোবল মারার সুযোগ দেয়া হবে না’

‘অপশক্তিকে আর ছোবল মারার সুযোগ দেয়া হবে না’

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান কুমিল্লা নানুয়ার দিঘির পাড় এলাকা পরিদর্শন করেন। ছবি: নিউজবাংলা

ধর্ম প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘শান্তিশৃঙ্খলার সঙ্গে দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে, তখনই সুযোগ পেয়ে স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি আবার দেশকে ছোবল মেরেছে। এটাই শেষ। তাদের আর ছাড় দেয়া হবে না।’

দেশকে ছোবল মারা স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তিকে ছাড় দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী ফরিদুল হক খান।

কুমিল্লার নানুয়ার দিঘির পাড় এলাকা পরিদর্শন শেষে বৃহস্পতিবার সকালে এ কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

এই এলাকার অস্থায়ী পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ পাওয়ার পর কুমিল্লা শহরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ঘটে যাওয়া সাম্প্রদায়িক সহিংসতার প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘শান্তিশৃঙ্খলার সঙ্গে দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে, তখনই সুযোগ পেয়ে স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি আবার দেশকে ছোবল মেরেছে। এটাই শেষ। তাদের আর ছাড় দেয়া হবে না।’

এই এলাকা পরিদর্শনের পর প্রতিমন্ত্রী নগরীর চকবাজার এলাকায় ক্ষতিগ্রস্ত পূজামণ্ডপ ঘুরে দেখেন এবং ক্ষতিগ্রস্তদের সান্ত্বনা ও সরকারি সহযোগিতার আশ্বাস দেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন কুমিল্লা সদর আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা বাহাউদ্দীন বাহার, কুমিল্লা-৭ আসনের সংসদ সদস্য ডা. প্রাণ গোপাল দত্ত, কুমিল্লার জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান, পুলিশ সুপার ফারুক আহমেদসহ জেলা এবং পুলিশ ও প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

শেয়ার করুন

স্কুলছাত্রীকে হত্যার পর আটক কিশোরের মৃত্যু

স্কুলছাত্রীকে হত্যার পর আটক কিশোরের মৃত্যু

টাঙ্গাইলের কালিহাতীর একটি নির্মাণাধীন ভবনের সিঁড়ি থেকে সুমাইয়ার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছিল। ছবি: নিউজবাংলা

র‍্যাব কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, স্কুলছাত্রীর মরদেহের পাশেই রক্তাক্ত অবস্থায় মনিরের পড়ে থাকাটা তদন্তের মোড় অন্যদিকে ঘুরিয়ে দেয়। আহত মনিরকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে র‍্যাব হেফাজতে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিল। সুস্থ হলে তাকে আদালতে তোলা হতো।

টাঙ্গাইলের কালিহাতীতে স্কুলছাত্রীকে কুপিয়ে হত্যার পর ‘আত্মহত্যার’ চেষ্টা করা কিশোর মনির মারা গেছে।

র‌্যাব-১২ সিপিসি-৩ এর কোম্পানি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট আব্দুল্লাহ আল মামুন বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, মনিরকে আহত অবস্থায় উদ্ধারের পর প্রথমে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে ও পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানেই সকালে সে মারা যায়।

তিনি আরও জানান, এর আগে চিকিৎসাধীন অবস্থায় জিজ্ঞাসাবাদে মনির ওই স্কুলছাত্রীকে হত্যা করে আত্মহত্যার চেষ্টার কথা জানায়।

হত্যার শিকার কিশোরীর নাম সুমাইয়া আক্তার। তার বাড়ি উপজেলার পালিমা এলাকায়। সে এলেঙ্গা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণিতে পড়ত।

মনির মিয়ার বাড়ি উপজেলার ভাবলা গ্রামে। তবে সে মশাজান গ্রামে থেকে কালিহাতীতে পরিবহন শ্রমিক হিসেবে কাজ করত।

কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘স্কুলছাত্রী সুমাইয়ার মরদেহের পাশেই রক্তাক্ত অবস্থায় মনিরের পড়ে থাকাটা তদন্তের মোড় অন্যদিকে ঘুরিয়ে দেয়। আহত মনিরকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে র‌্যাব হেফাজতে রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিল। সুস্থ হলে তাকে আদালতে তোলা হতো।

‘সুমাইয়ার সঙ্গে মনিরের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। দুই মাস আগে সুমাইয়া অন্য আরেকজনের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে। বিষয়টি মনির সহ্য করতে না পেরে সুমাইয়াকে মারধর করে।

‘বুধবার কোচিংয়ে যাওয়ার সময় একপর্যায়ে মনির সুমাইয়াকে একটি ভবনের নিচ তলার নিয়ে ছুরি দিয়ে হত্যার পর নিজেই আত্মহত্যার চেষ্টা করে।’

তিনি আরও বলেন, ‘ঘটনাস্থল থেকে যে ছুরি উদ্ধার করা হয়েছে সেটি মনিরের দুইটি টিকটক ভিডিওতে দেখা গেছে। মঙ্গলবার মনির তার বন্ধুদের সঙ্গে একটি বৈঠকে বসে অস্ত্রের কথাও বলেছে। পরে মনির ওই স্কুলছাত্রীকে হত্যা করে নিজেই আত্মহত্যার চেষ্টা করে।’

উপজেলার এলেঙ্গা পৌরসভার শামসুল হক কলেজের সামনের একটি ভবনের সিঁড়ি থেকে বুধবার সকাল পৌনে ৭টার দিকে সুমাইয়ার গলাকাটা দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সেখানেই রক্তাক্ত অবস্থায় পাওয়া যায় মনিরকে।

তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে নেয়া হলে জরুরি বিভাগে চিকিৎসক রাজিব পাল চৌধুরী জানিয়েছিলেন, মনিরের গলায়, ঘাড়ে ও শরীরের বিভিন্নস্থানে গভীর ক্ষত ছিল।

শেয়ার করুন