দেশে মাছের ভ্যাকসিন উদ্ভাবন

দেশে মাছের ভ্যাকসিন উদ্ভাবন

সিলেট জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘এই অঞ্চলের বেশিরভাগ মাছই ক্ষত রোগে আক্রান্ত হয়। একে মাছের ক্যান্সারও বলা হয়। প্রতি বছর অনেক মাছ ক্ষত রোগে মারা যায়। বাইরের অনেক দেশে মাছের শরীরে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হলেও আমাদের দেশে এখনও শুরু হয়নি।’

বাংলাদেশে মাছের জন্য প্রথম ভ্যাকসিন উদ্ভাবন করেছেন সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (সিকৃবি) এক শিক্ষক।

এই ভ্যাকসিন মাছের ব্যাকটেরিয়াজনিত একাধিক রোগের প্রতিষেধক হিসেবে কাজ করবে ও মৃত্যুহার কমিয়ে উৎপাদন বাড়াবে বলে আশা এর উদ্ভাবক সিকৃবির মৎস্য বিজ্ঞান অনুষদের স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. আব্দুল্লাহ আল মামুনের।

২০১৬ সাল থেকে মাছের ভ্যাকসিন উদ্ভাবন নিয়ে গবেষণা করা এই অধ্যাপক নিউজবাংলাকে জানান, এরোমোনাস হাইড্রোফিলা নামে এক ধরনের ব্যাকটেরিয়ায় আক্রান্ত হয়ে মাছের ক্ষত রোগ, পাখনা পচাসহ বিভিন্ন রোগ দেখা দেয়। এতে প্রতি বছর প্রচুর মাছ মারা যায়। তবে এই উপমহাদেশে মাছের ভ্যাকসিন নিয়ে তেমন কাজ হয়নি।

আব্দুল্লাহ আল মামুন উদ্ভাবিত ভ্যাকসিনের নাম দেয়া হয়েছে বায়োফ্লিম।

উদ্ভাবক বলেন, ‘আমরা সিকৃবির গবেষণাগারে কিছু পাঙ্গাশ মাছের শরীরে এই ভ্যাকসিন প্রবেশ করিয়ে ৮৪ শতাংশ সফলতা পেয়েছি। এরপর মাঠ পর্যায়ে এটি প্রয়োগ করা হবে।

‘আগামী মার্চ থেকে সিলেটের বিভিন্ন পুকুরের মাছের শরীরে এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হবে। এর মধ্যে কয়েকটি পুকুরও নির্ধারণ করা হয়েছে। মাঠ পর্যায়ে প্রয়োগে সফলতা মিললেই বাণিজ্যিক উৎপাদনের উদ্যোগ নেয়া হবে।’

উদ্ভাবিত ভ্যাকসিন খাবারের সঙ্গে মিশিয়ে মাছকে খাওয়ানো হবে জানিয়ে মামুন বলেন, ‘এই ভ্যাকসিন ব্যাপক আকারে উৎপাদনের সক্ষমতা আমাদের নেই। আমাদের যে সক্ষমতা আছে তাতে প্রতি মাসে ১০০ মিলিলিটার উৎপাদন করতে পারব। এই পরিমাণ ভ্যাকসিন ১ কেজি মাছের খাবারের সঙ্গে মেশানো যাবে।

‘এই গবেষণা কাজে সহযোগিতার জন্য বাংলাদেশ অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সে একটি প্রকল্প প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।’

সিলেট জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবুল কালাম আজাদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এই অঞ্চলের বেশিরভাগ মাছই ক্ষত রোগে আক্রান্ত হয়। একে মাছের ক্যান্সারও বলা হয়। প্রতি বছর অনেক মাছ ক্ষত রোগে মারা যায়।

‘বাইরের অনেক দেশে মাছের শরীরে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হলেও আমাদের দেশে এখনও শুরু হয়নি। ক্ষত রোগ থেকে মুক্ত রাখতে আমরা সাধারণনত জলাশয়ে চুন ও লবণ ব্যবহার করে থাকি।’

কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকের ভ্যাকসিন উদ্ভাবনের বিষয়টি তিনি এখনও না জানলেও বলেন, ‘মাছের ভ্যাকসিন উদ্ভাবন করা গেলে উৎপাদন অনেক বাড়বে।’

সিকৃবির মৎস্য অনুষদ সূত্রে জানা যায়, জাপান, যুক্তরাষ্ট্র, কানাডা, নরওয়ে, ফিনল্যান্ড, চিলিসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে মাছের জন্য ২৮ ধরনের ভ্যাকসিন বাণিজ্যিক ভিত্তিতে ব্যবহার হয়। বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো এ ধরনের ভ্যাকসিন উদ্ভাবন হয়েছে। স্বাদুপানিতে চাষযোগ্য মাছে এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা যাবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মতিয়ার রহমান হাওলাদার জানান, বাংলাদেশে প্রায় ৪০ লাখ টন মাছ উৎপাদন হয়। মাছ উৎপাদনে বাংলাদেশের অবস্থান পঞ্চম। তবে মাছের বিভিন্ন রোগের কারণে মড়ক দেখা দেয়। এতে প্রচুর পরিমাণ মাছ মারা যাওয়ায় চাষি ও দেশ ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।

তিনি বলেন, ‘এই গবেষণার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে ২৫ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়। এই টাকায় আধুনিক যন্ত্রপাতি কেনা হয়েছে। আমার আশা, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের উৎপাদিত ভ্যাকসিন মাছের উৎপাদন বৃদ্ধির পাশাপাশি দেশের আমিষের চাহিদা পূরণে অবদান রাখবে।’

আরও পড়ুন:
হাঁস-মুরগির কলেরা: ৩০ টাকার ভ্যাকসিন ১৭০ টাকা
পাবনায় ভ্যাকসিন ছাড়াই খালি সিরিঞ্জ পুশ, দুই নার্স প্রত্যাহার
টিকা নিলেন দেশসেরা জহির-সানা-মাবিয়ারা
টিকার সব তথ্য প্রকাশ করল ভারত-বায়োটেক
কোভ্যাকসিন নিরাপদ, গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই: ল্যানসেট

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ভাত কম খেতে বলেননি কৃষিমন্ত্রী: মন্ত্রণালয়

ভাত কম খেতে বলেননি কৃষিমন্ত্রী: মন্ত্রণালয়

‘বাংলাদেশের ৫০ বছর: কৃষির রূপান্তর ও অর্জন’ বিষয়ে সম্মেলনে বক্তব্য দিচ্ছেন কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক। ফাইল ছবি

বিবৃতিতে বলা হয়, ‘মন্ত্রীর বক্তব্যকে ভুল ও আংশিকভাবে উপস্থাপন করে ভাত কম খাওয়ার বিষয়ে দুই-একটি গণমাধ্যম এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিত্তিহীন ও অসত্য তথ্য প্রচার করা হয়েছে।’

মানুষ ভাত বেশি খায় বলে চালের ঘাটতি দেখা দিয়েছে—এমন কোনো বক্তব্য দেননি বলে দাবি করেছেন কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক।

মঙ্গলবার রাতে সংবাদমাধ্যমে পাঠানো মন্ত্রণালয়ের বিবৃতিতে কৃষিমন্ত্রীর বক্তব্যকে ভুলভাবে উদ্ধৃত করা হয়েছে বলে দাবি করা হয়।

কৃষিমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য আবদুর রাজ্জাক ওই বিবৃতিতে দাবি করেছেন, ভাত কম খেতে বলেননি তিনি।

বিবৃতিতে বলা হয়,“মন্ত্রীর বক্তব্যকে ভুল ও আংশিকভাবে উপস্থাপন করে ভাত কম খাওয়ার বিষয়ে দুই-একটি গণমাধ্যম এবং সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভিত্তিহীন ও অসত্য তথ্য প্রচার করা হয়েছে। রোববার সকালে রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে ‘বাংলাদেশের ৫০ বছর: কৃষির রূপান্তর ও অর্জন’ শীর্ষক সম্মেলনের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে মন্ত্রীর বক্তব্যের অডিও ও ভিডিও কৃষি মন্ত্রণালয়ে সংরক্ষিত আছে। ওই অনুষ্ঠানে গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। বক্তব্যের রেকর্ড তাদের কাছেও আছে।”

এতে বলা হয়, ‘সেই বক্তব্যের কোথাও এ রকম কথা মন্ত্রী বলেননি। উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে কৃষিমন্ত্রীর ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করতে এই ভিত্তিহীন ও অসত্য সংবাদ প্রচার হয়েছে।’

চালের সংকট কমাতে কৃষিমন্ত্রী দেশের মানুষকে ভাত কম খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন জানিয়ে রোববার বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে খবর প্রকাশ হয়। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও এ ধরনের তথ্য ছড়িয়ে পড়ে।

গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয় কৃষিমন্ত্রী বলেছেন, ‘আমরা অনেক বেশি চাল খাই, ভাত খাই। এ জন্য চালের ঘাটতি দেখা দিচ্ছে। আমরা দিনে প্রায় ৪০০ গ্রাম চাল খাই। অথচ পৃথিবীর অনেক দেশের মানুষ ২০০ গ্রাম চালও খায় না।

‘খাদ্যের অভাব নেই দেশে। নেই খাদ্যের সংকট ও খাবারের জন্য হাহাকার, কিন্তু মানুষ অধিক ভাত খায় বলে চালের ওপর বেশি চাপ পড়ছে। এতে প্রায়শ সংকট দেখা দিচ্ছে; বাড়ছে দামও।’

মন্ত্রীকে উদ্ধৃত করে ঘটনার দুই দিন পর পাঠানো বিবৃতিতে বলা হয়,‘বাংলাদেশ সত্যিকার অর্থে দানা জাতীয় খাদ্যে সফল হয়েছে। বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষ জনপ্রতি ২০০ গ্রামের মতো চাল খেয়ে থাকে, কিন্তু আমাদের দেশে চাল খাওয়ার পরিমাণ জনপ্রতি প্রায় ৪০০ গ্রাম, যা ক্রমশ কমছে।

‘এখন আমাদের লক্ষ্য পুষ্টিজাতীয় খাবার দুধ, মাছ, মাংস, ডিম, ফলমূল প্রভৃতি গ্রহণের পরিমাণ বাড়িয়ে ভাত খাওয়ার পরিমাণ কমিয়ে আনা। এটি করতে পারলে চালের ব্যবহার কমে আসবে ও জনগণ পুষ্টিসম্মত খাবার পাবে।’

বিবৃতিতে দেয়া তথ্য অনুযায়ী, কৃষিমন্ত্রী আরও বলেন, ‘কোভিড-১৯ মহামারি রয়েছে, তা সত্ত্বেও বাংলাদেশের মানুষের খাদ্যের কষ্ট হয়নি। কোনো মানুষ না খেয়ে নেই। কোনো মানুষের মাঝে হাহাকার নেই। এমন পরিস্থিতিতে এখন আমাদের বড় চ্যালেঞ্জ হলো সবার জন্য পুষ্টিকর ও নিরাপদ খাদ্যের জোগান দেয়া।

‘সে জন্য বাংলাদেশকে আমরা আধুনিক কৃষিতে নিয়ে যেতে চাই। কৃষিকে লাভজনক করতে চাই। আমরা বাংলাদেশকে অ্যাগ্রো প্রসেসিং, খাদ্য প্রক্রিয়াজাতকরণে নিয়ে যেতে চাই।’

কৃষিমন্ত্রী পুষ্টিজাতীয় খাবার দুধ, মাছ, মাংস, ডিম, শাক-সবজি, ফলমূল প্রভৃতি খাওয়া বা গ্রহণের পরিমাণ বাড়াতে সরকারের প্রচেষ্টার কথা বলেছেন বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়।

আরও পড়ুন:
হাঁস-মুরগির কলেরা: ৩০ টাকার ভ্যাকসিন ১৭০ টাকা
পাবনায় ভ্যাকসিন ছাড়াই খালি সিরিঞ্জ পুশ, দুই নার্স প্রত্যাহার
টিকা নিলেন দেশসেরা জহির-সানা-মাবিয়ারা
টিকার সব তথ্য প্রকাশ করল ভারত-বায়োটেক
কোভ্যাকসিন নিরাপদ, গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই: ল্যানসেট

শেয়ার করুন

ভাসমান যে হাটে সপ্তাহে বিক্রি ২২ লাখ টাকা

ভাসমান যে হাটে সপ্তাহে বিক্রি ২২ লাখ টাকা

পিরোজপুরের নাজিরপুরের বেলুয়া নদীতে সপ্তাহে ২ দিন বসে এই ভাসমান হাট। ছবি: নিউজবাংলা

প্রতি শনি ও মঙ্গলবার বসে এই ভাসমান সবজি হাট। আগের রাত থেকে খাল বেয়ে আশপাশের বিভিন্ন জেলার কৃষকরা ডিঙি নৌকায় করে সবজি নিয়ে ভিড়তে থাকেন নাজিরপুরে। ভোর সাড়ে ৫টার মধ্যে সরগরম হয়ে ওঠে বাজার।

পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার বেলুয়া নদী স্থানীয়দের কাছে পরিচিত বৈঠাকাটা নামে।

গোপালগঞ্জ, পিরোজপুর আর বরিশালের তিন জেলার মোহনায় এই নদী। প্রতিদিন হাজারও লোক এই নদীপথ দিয়ে চলাচল করে। সপ্তাহে দুইদিন ভোর থেকে দুপুর পর্যন্ত নদীর নাজিরপুর অংশ ভাসমান সবজি হাটের দখলে থাকে। ক্রেতা-বিক্রেতাদের বিচরণে মুখর থাকে নদী। অন্য জেলা থেকেও পাইকারি ক্রেতা সবজি কিনতে নদীর এই অংশে জড়ো হন।

উপজেলা কৃষি অফিস জানিয়েছে, এই ভাসমান হাটে সপ্তাহে প্রায় ২২ লাখ টাকার কেনাবেচা হয়।

ভাসমান যে হাটে সপ্তাহে বিক্রি ২২ লাখ টাকা

প্রতি শনি ও মঙ্গলবার বসে এই ভাসমান সবজি হাট। এর আগের রাত থেকে খাল বেয়ে চিতলমারী, মোড়েলগঞ্জ, টুঙ্গিপাড়াসহ আশপাশের বিভিন্ন জেলার কৃষকরা ডিঙি নৌকায় করে সবজি নিয়ে ভিড়তে থাকেন নাজিরপুরে।

ভোর সাড়ে ৫টার মধ্যে সরগরম হয়ে ওঠে বাজার। বিভিন্ন এলাকা থেকে ব্যবসায়ীরা ট্রলার ও ছোটবড় নৌকা নিয়ে এই হাটে আসেন।

ভাসমান যে হাটে সপ্তাহে বিক্রি ২২ লাখ টাকা

এই ভাসমান সবজি হাটের নিয়মিত বিক্রেতা জালাল মুন্সি। নিউজবাংলাকে তিনি জানান, স্বাভাবিক সময়ে ভোর ৬টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত চলে হাট। তবে করোনা পরিস্থিতির কারণে এখন বেলা ১২টার আগেই হাট ভেঙে যায়।

তিনি আরও জানান, এই হাটে মৌসুমি সব সবজি পাওয়া যায়। এখন সেখানে বেশি বিক্রি হয় বরবটি, কুমরা, পুঁইশাক, করল্লা, পটল, কাঁচকলা ও লাউ। সেইসঙ্গে বিভিন্ন গাছের চারাও পাওয়া যায়।

ভাসমান যে হাটে সপ্তাহে বিক্রি ২২ লাখ টাকা

স্থানীয় কৃষক গোপাল সেন জানান, বৈঠাকাটা নদীকে ঘিরেই এখন বসবাস করেন কয়েক হাজার কৃষক। তাদের উৎপাদিত ফসল বেচাকেনার একমাত্র স্থান এই ভাসমান হাট। ন্যায্যমূল্য পাওয়ার কারণে আশপাশের গ্রামের কৃষকও এই হাটে পণ্য বিক্রি করতে আসেন।

ভাসমান এই সবজির হাট প্রায় ৭০ বছর ধরে চলছে বলে জানিয়েছে কৃষকরা।

ভাসমান যে হাটে সপ্তাহে বিক্রি ২২ লাখ টাকা

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দিগ্বিজয় হাজরা জানিয়েছেন, চলতি মৌসুমে প্রতি হাটে ১০ থেকে ১১ লাখ টাকার বেচাকেনা হচ্ছে। সে হিসাবে সপ্তাহে বিক্রি হচ্ছে প্রায় ২২ লাখ টাকার সবজি। শীতকালে তা বেড়ে প্রতি হাটে ১৫ থেকে ১৬ লাখ টাকার কেনাবেচা হয়।

আরও পড়ুন:
হাঁস-মুরগির কলেরা: ৩০ টাকার ভ্যাকসিন ১৭০ টাকা
পাবনায় ভ্যাকসিন ছাড়াই খালি সিরিঞ্জ পুশ, দুই নার্স প্রত্যাহার
টিকা নিলেন দেশসেরা জহির-সানা-মাবিয়ারা
টিকার সব তথ্য প্রকাশ করল ভারত-বায়োটেক
কোভ্যাকসিন নিরাপদ, গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই: ল্যানসেট

শেয়ার করুন

প্রাণ ফিরেছে মেঘনার মাছঘাটে

প্রাণ ফিরেছে মেঘনার মাছঘাটে

লক্ষ্মীপুরের মেঘনার মাছঘাটে ইলিশ বেচাকেনা জমেছে। ছবি: নিউজবাংলা

জেলেরা জানালেন, এক কেজি ওজনের এক হালি ইলিশ বিক্রি হচ্ছে সাড়ে চার হাজার টাকায়। আর এক কেজির কম ওজনের এক হালি মাছ বিক্রি হচ্ছে তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকা।

নিষেধাজ্ঞা শেষে ২২ দিন পর আবারও জমে উঠেছে লক্ষ্মীপুরের মেঘনার তীরের সব মাছঘাট। ক্রেতা-বিক্রেতাদের আনাগোনায় প্রাণ ফিরেছে আড়তে।

জেলেরা সোমবার মধ্যরাত থেকে মাছ ধরতে শুরু করেছেন মেঘনায়। তারা জানালেন, ইলিশ ভালো পরিমাণেই পাওয়া যাচ্ছে। তবে প্রায় সবগুলোতেই ডিম আছে।

সদর উপজেলার মজুচৌধুরীরহাট, কমলনগরের মতিরহাট, লূধুয়া ও নাছিরগঞ্জের মাছঘাটগুলোতে মঙ্গলবার সকালে দেখা গেছে, প্রতিটিতেই ব্যাপক ক্রেতা-বিক্রেতার সমাগম। জেলেরা ঘাটে ইলিশ নিয়ে আসা মাত্রই বিক্রি হয়ে যাচ্ছে।

রামগতির চেয়ারম্যানঘাট, বড়খেরী, চরআলেকজান্ডার, বাংলাবাজার, জনতাবাজার, চরকালকিনি, সাজু মোল্লারহাট, আলতাফ মাস্টাররঘাটসহ জেলার ১৬ ঘাট থেকে এমন জমজমাট কেনাবেচার খবর পাওয়া গেছে।

মজুচৌধুরীরহাটের জেলে কালাম মাঝি, ইউনুছ মাঝি ও মো. সোহেল জানালেন, ইলিশ রক্ষায় সরকারের নিষেধাজ্ঞা মেনে তারা ২২ দিন নদীতে নামেননি। ২৫ অক্টোবর মধ্যরাত থেকে মাছ ধরা শুরু করেছেন।

তারা জানালেন, আগের তুলনায় জালে অনেক ইলিশ ধরা পড়ছে। দামও ভালো পাচ্ছেন। এক কেজি ওজনের এক হালি ইলিশ বিক্রি হচ্ছে সাড়ে চার হাজার টাকায়। আর এক কেজির কম ওজনের এক হালি মাছ বিক্রি হচ্ছে তিন থেকে সাড়ে তিন হাজার টাকা।

তবে তাদের অভিযোগ, নিষেধাজ্ঞার সময়টা ঠিক হয়নি। এ সময়ে মা ইলিশ ডিম ছাড়তে পারেনি। তাই প্রায় সব মাছে ডিম রয়ে গেছে।

প্রজনন মৌসুমে মা ইলিশ রক্ষায় সারা দেশে ৪ অক্টোবর থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত চলে মাছ ধরার নিষেধাজ্ঞা।

জেলা মৎস্য কর্মকতা আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘জেলেদের জালে প্রচুর পরিমাণ ইলিশ ধরা পড়ছে। এতে তারা অনেক খুশি। গত বছর শীতে প্রচুর মাছ পাওয়া গেছে। এবার মাছ আরও বেশি ধরা পড়বে। এবার উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে ২৫ হাজার টন।’

আরও পড়ুন:
হাঁস-মুরগির কলেরা: ৩০ টাকার ভ্যাকসিন ১৭০ টাকা
পাবনায় ভ্যাকসিন ছাড়াই খালি সিরিঞ্জ পুশ, দুই নার্স প্রত্যাহার
টিকা নিলেন দেশসেরা জহির-সানা-মাবিয়ারা
টিকার সব তথ্য প্রকাশ করল ভারত-বায়োটেক
কোভ্যাকসিন নিরাপদ, গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই: ল্যানসেট

শেয়ার করুন

বামন্দী গ্রামের বাজার মাতাচ্ছে কালো আখ

বামন্দী গ্রামের বাজার মাতাচ্ছে কালো আখ

মেহেরপুরের গাংনীর বামন্দী গ্রামে চাষ হচ্ছে ফিলিপিনো ব্ল্যাক জাতের আখ। ছবি: নিউজবাংলা

সাইফুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এক বিঘা জমিতে আখ চাষ করতে আমাদের খরচ হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকা। আর আখ বিক্রি হচ্ছে ৩ থেকে ৪ লাখ টাকা পর্যন্ত। অন্য যে কোনো ফসলের চেয়ে আখ চাষ লাভজনক।’

মেহেরপুরে গাংনীর বামন্দী গ্রামের দুই বন্ধু সাইফুল ইসলাম ও ইউসুফ আলী। নিজ নিজ বাড়ির পাশের পৌনে দুই বিঘা জমিতে ফিলিপাইন ব্ল্যাক জাতের আখ চাষ করে গ্রামে তারা এখন সুপরিচিত। লোকজন নতুন জাতের আখ দেখতে প্রায়ই তাদের বাড়ি যায়।

সাইফুল ও ইউসুফ বামন্দী বালিকা বিদ্যালয়ের শিক্ষক। তারা জানালেন, শখ থেকেই পরীক্ষামূলকভাবে এই আখের চাষ করেছেন। খরচের দ্বিগুন লাভ হয়েছে বলে তারা উচ্ছ্বসিত।

নিউজবাংলাকে সাইফুল ও ইউসুফ জানান, দেশে সাধারণত যে আখ হয়, তার থেকে ফিলিপাইন ব্ল্যাক জাতের আখ বেশ নরম ও মিষ্টি। একটি আখ থেকে ৭ থেকে ১০ টি বীজ পাওয়া যায়। এ কারণে কম খরচে এর উৎপাদনও বেশি করা যায়।

দুই বন্ধু জানান, ভ্রাম্যমাণ আখ বিক্রেতারা তাদের জমি থেকে ৩০ থেকে ৩৫ টাকা দামে এক একটি আখ কিনে নেয়। বাজারে ক্রেতাদের বেশ সাড়া পাওয়া যাচ্ছে।

সাইফুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘চাহিদা ও বাজার মুল্য ভালো থাকায় নতুন জাতের আখের বীজ নিতে বিভিন্ন এলাকা থেকে কৃষকরা আসেন এখানে। চারা রোপনের দশ মাস পর থেকে জমি থেকে এই আখ সংগ্রহ করা যায়।

‘এক বিঘা জমিতে আখ চাষ করতে আমাদের খরচ হচ্ছে ৭০ থেকে ৮০ হাজার টাকা। আর আখ বিক্রি হচ্ছে ৩ থেকে ৪ লাখ টাকা পর্যন্ত। অন্য যে কোনো ফসলের চেয়ে আখ চাষ লাভজনক। এ কারণে অনেকে এই নতুন জাতের আখ চাষে আগ্রহী হচ্ছে।’

বামন্দী গ্রামের বাজার মাতাচ্ছে কালো আখ

ইউসুফ আলী বলেন, ‘আমি আর সাইফুল আমাদের আরেক শিক্ষক ভাইয়ের আখ চাষ দেখে ফিলিপাইন ব্লাক আখ চাষে আগ্রহী হই। ইউটিউব দেখে শিখে নিয়েছি। জমিতে আখের সঙ্গে সাথী ফসল হিসেবে রসুন চাষ করি।

‘সব মিলিয়ে বিঘা প্রতি এক লাখ টাকা খরচ হয়। অথচ সাথী ফসল রসুন বেচে পেয়েছি পঞ্চাশ হাজার টাকা। সব ঠিকঠাক থাকলে প্রতি বিঘাতে তিন থেকে চার লাখ টাকা পর্যন্ত আয় করা সম্ভব। তাই বলি শিক্ষিত বেকার যুবক ভাইয়েরা বসে না থেকে যে কোনো কৃষি কাজ বা খামার করা উচিত।’

আখ বিক্রেতা মো. শানারুল বলেন, ‘আমি প্রায় আট বছর গেন্ডারি আখ বাজার ঘাটে বেইচি বেড়াই। তবে এ বছর কালো খয়েরী কালারের ফিলিপাইন গেন্ডারি কাস্টমারে বেশি চাইছে। কারণ এটি খাইতে অনেক মিষ্টি ও খুব নরম।’

গাংনী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা লাভলী খাতুন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এই উপজেলায় নতুন একটি ফসল সম্প্রসারণ হতে যাচ্ছে, তা হলো ফিলিপাইন ব্লাক গেন্ডারি। তিন বছরের মতো হবে এ ফসলটি বাণিজ‍্যিকভাবে চাষ শুরু হয়েছে।

‘যারা এই আখ চাষ করছেন, তারা আমাদের জানিয়েছেন বিঘা প্রতি খরচ হয় ৭৫ থেকে এক লাখ টাকা। আর ফিডব‍্যাক হিসেবে পাওয়া যায় ৩ থেকে ৪ লাখ টাকার মতো। বাজারেও চাহিদা বেশ ভালো। তাই এ উপজেলার জন‍্য এটি একটি অর্থকারী ফসল হয়ে উঠতে পারে।’

আরও পড়ুন:
হাঁস-মুরগির কলেরা: ৩০ টাকার ভ্যাকসিন ১৭০ টাকা
পাবনায় ভ্যাকসিন ছাড়াই খালি সিরিঞ্জ পুশ, দুই নার্স প্রত্যাহার
টিকা নিলেন দেশসেরা জহির-সানা-মাবিয়ারা
টিকার সব তথ্য প্রকাশ করল ভারত-বায়োটেক
কোভ্যাকসিন নিরাপদ, গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই: ল্যানসেট

শেয়ার করুন

কৃষিতে ঋণ বাড়লেও আদায় কমেছে

কৃষিতে ঋণ বাড়লেও আদায় কমেছে

ক্ষেতে আলুর পরিচর্যায় ব্যস্ত কৃষক। ফাইল ছবি

চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে ব্যাংকগুলো ৫ হাজার ২১০ কোটি টাকা কৃষিঋণ বিতরণ করেছে, যা আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১১ দশমিক ২৩ শতাংশ বেশি, টাকার অংকে যার পরিমাণ ৫২৬ কোটি টাকা।

চলতি অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে (জুলাই-সেপ্টেম্বর) কৃষিতে ব্যাংকগুলো বেশি ঋণ দিয়েছে। জুলাই ও আগস্টে ঋণ বিতরণ কম হলেও সেপ্টেম্বরে ঋণে গতি ফিরেছে। ফলে প্রথম ত্রৈমাসিকে কৃষি ও পল্লিঋণ বিতরণে প্রবৃদ্ধি ১১ শতাংশ।

তবে এ সময়ে ঋণ বিতরণ বাড়লেও ঋণ আদায় কমেছে। তিন মাসে আদায় হয়েছে ৫ হাজার ৫৮৬ কোটি টাকা। গত অর্থবছরের জুলাই-সেপ্টেম্বরে আদায় হয়েছিল ৬ হাজার ২৭৭ কোটি টাকা। অর্থাৎ আদায় কমেছে ৬৯১ কোটি টাকা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে এ চিত্র পাওয়া গেছে।

এই অর্থবছরে কৃষি খাতে ব্যাংকগুলোর ২৮ হাজার ৩৯১ কোটি টাকার ঋণ বিতরণ করার লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

২০২০-২১ অর্থবছরে লক্ষ্যমাত্রার ৯৭ শতাংশ ঋণ বিতরণ করে ব্যাংকগুলো। ওই অর্থবছরে কৃষি ও পল্লি খাতে ব্যাংকগুলোর ২৬ হাজার ২৯২ কোটি টাকার ঋণ বিতরণের লক্ষ্যমাত্রা ছিল। অর্থবছর শেষে এ খাতে ঋণ বিতরণ হয় ২৫ হাজার ৫১১ কোটি টাকা।

চলতি ২০২১-২২ অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে ব্যাংকগুলো ৫ হাজার ২১০ কোটি টাকা কৃষিঋণ বিতরণ করেছে, যা আগের অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় ১১ দশমিক ২৩ শতাংশ বেশি, টাকার অংকে যার পরিমাণ ৫২৬ কোটি টাকা।

গত অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে কৃষি ও পল্লিঋণ খাতে ব্যাংকগুলো ৪ হাজার ৬৮৪ কোটি টাকা বিতরণ করেছিল।

অর্থবছরের প্রথম মাস জুলাইতে ৯৪২ কোটি ও আগস্টে ১ হাজার ৭৩২ কোটি টাকা কৃষিঋণ বিতরণ হয়। কিন্তু সেপ্টেম্বরে কৃষি খাতে ২ হাজার ৫৩৬ কোটি টাকা ঋণ বিতরণ হওয়ায় তিন মাসে ব্যাংকগুলো বার্ষিক লক্ষ্যমাত্রার ১৮ দশমিক ৩৫ শতাংশ ঋণ দিয়েছে।

করোনাভাইরাসের বিপর্যয় কাটাতে গত বছর এপ্রিলে কৃষি খাতের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। এ তহবিল থেকে হর্টিকালচার, ফুল, ফল, মৎস্য, পোলট্রি, ডেইরি ও প্রাণিসম্পদ খাতে গত ৩০ জুন পর্যন্ত ৪ হাজার ২৯৫ কোটি টাকার ঋণ বিতরণ করা হয়।

করোনা পরিস্থিতি উন্নতি না হওয়ায় গত সেপ্টেম্বরে আরও ৩ হাজার কোটি টাকার পুনঃঅর্থায়ন তহবিল গঠন করে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক বর্গাচাষিরা জামানত ছাড়াই ২ লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ নিতে পারবেন। তহবিলের মেয়াদ হবে ২০২২ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত।

আরও পড়ুন:
হাঁস-মুরগির কলেরা: ৩০ টাকার ভ্যাকসিন ১৭০ টাকা
পাবনায় ভ্যাকসিন ছাড়াই খালি সিরিঞ্জ পুশ, দুই নার্স প্রত্যাহার
টিকা নিলেন দেশসেরা জহির-সানা-মাবিয়ারা
টিকার সব তথ্য প্রকাশ করল ভারত-বায়োটেক
কোভ্যাকসিন নিরাপদ, গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই: ল্যানসেট

শেয়ার করুন

বিনা ধান-১৭ আগাম পাকে, লাভ অনেক

বিনা ধান-১৭ আগাম পাকে, লাভ অনেক

বিনাধান-১৭ আবাদ করে লাভবান হচ্ছেন কৃষক। ছবি: নিউজবাংলা

বিনা ধান-১৭ জাতের ধানের উদ্ভাবক বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, “এ ধান গাছের প্রতিটি শিষে পুষ্ট দানার সংখ্যা ২৫০ থেকে ২৭০টি। প্রচলিত জাতের তুলনায় ইউরিয়া সার ৩০ শতাংশ কম এবং জমিতে ৪০ শতাংশ পানি কম লাগে। এ কারণে ‘গ্রিন সুপার রাইস’ হিসেবেও জাতটির নামকরণ হয়েছে।”

উচ্চ ফলনশীল, স্বল্প মেয়াদি, খরাসহিষ্ণু, আলোক সংবেদনশীল ও উন্নত গুণাগুণের বিনা ধান-১৭ আবাদে কৃষি খাতে বিপুল সম্ভাবনা দেখছেন বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের (বিনা) বিজ্ঞানীরা। তারা বলছেন, দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এ জাত আবাদ করে লাভবান হচ্ছেন কৃষক। এখন সারা দেশে জাতটি ছড়িয়ে দেয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা জানান, উদ্ভাবিত এ জাতের ধানগাছ খাটো ও শক্ত বলে হেলে পড়ে না। পূর্ণবয়স্ক গাছের উচ্চতা ৯৬ থেকে ৯৮ সেন্টিমিটার। পাতা গাঢ় সবুজ ও খাড়া। ধান আগাম পেকে যাওয়ায় কাটার পর জমিতে সহজেই আলু, গম বা রবিশস্য চাষ করা যায়।

বিনা ধান-১৭ উজ্জ্বল রঙের। ধান ও চাল লম্বা এবং চিকন, খেতে সুস্বাদু। এ কারণে বাজারমূল্য বেশি ও বিদেশে রপ্তানির উপযোগী। চালে অ্যামাইলোজের পরিমাণ ২৪.৬ শতাংশ এবং হেক্টরপ্রতি ৬.৮ টন থেকে সর্বোচ্চ আট টন পর্যন্ত ফলন হয়।

বিনা ধান-১৭ আগাম পাকে, লাভ অনেক

এ ধানের চাল রান্নার পর ভাত ঝরঝরে হয় এবং দীর্ঘক্ষণ রাখলেও নষ্ট হয় না। ধানের এই জাতটি পাতা পোড়া, খোল পচা ও কাণ্ড পচা ইত্যাদি রোগ তুলনামূলকভাবে বেশি প্রতিরোধ করতে পারে। এ ছাড়া প্রায় সব ধরনের পোকার আক্রমণ, বিশেষ করে বাদামি গাছফড়িং, গলমাছি ও পামরি পোকার আক্রমণ প্রতিরোধের ক্ষমতা অনেক বেশি।

বিনা ধান-১৭ আগাম পাকে, লাভ অনেক

বিজ্ঞানীরা জানান, ধান চাষ বৃদ্ধির কারণে তেল ও ডালজাতীয় শস্যের জমি কমে যাচ্ছে। বিনা ধান-১৭ উচ্চ ফলনশীল এবং এর জীবনকাল তুলনামূলকভাবে অনেক কম বলে শস্য নিবিড়তা বাড়াতে খুবই কার্যকর। আগাম পাকা জাত হিসেবে এটি চাষ করে সঠিক সময়ে তেল ও ডাল ফসল চাষ সম্ভব।

লবণাক্ত এলাকা ছাড়া দেশের সব রোপা আমন অঞ্চল, বিশেষ করে উত্তরাঞ্চলের বৃহত্তর রংপুর, দিনাজপুর, বগুড়া, পাবনা এবং রাজশাহীসহ ঢাকা, কুমিল্লা, যশোর, কুষ্টিয়া, ময়মনসিংহ ও পার্বত্য অঞ্চলে জাতটির বেশি ফলন পাওয়া যায়।

বিনা ধান-১৭ জাতের ধানটি উদ্ভাবন করেছেন বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম। সহযোগী গবেষক হিসেবে ছিলেন উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগের প্রধান ও মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শামছুন্নাহার বেগম।

বিনা ধান-১৭ আগাম পাকে, লাভ অনেক

ড. শামছুন্নাহার বেগম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ জাতের ধানটি উদ্ভাবনে পাঁচ বছর গবেষণা করা হয়েছে। বিনা ধান-১৭-এর কৌলিক সারি নম্বর SAGC-7, যা ইরি-বিনার সহযোগিতায় ইরি-ফিলিপাইন থেকে সংগ্রহ করা হয়। সারি C418 (ZHONG413)-এর সঙ্গে SH109/(ZHONG413)2 সংকরায়ন করে পরে খরাসহিষ্ণু (ZHONG413)2-এর সঙ্গে পশ্চাৎ সংকরায়ন ও জিন পিরামিডিংয়ের মাধ্যমে লাইনটি উদ্ভাবন করা হয়েছে।’

তিনি জানান, এটি দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে আমন মৌসুমে ফলন পরীক্ষার মাধ্যমে জাত হিসেবে চূড়ান্তভাবে নির্বাচন করা হয়েছে। ২০১৫ সালে জাতীয় বীজ বোর্ড উচ্চ ফলনশীল ও স্বল্পমেয়াদি জাত হিসেবে সারা দেশে আমন মৌসুমে চাষের জন্য বিনা ধান-১৭ নামে অনুমোদন দেয়।

ড. শামছুন্নাহার বলেন, ‘এ জাতে ইউরিয়া সার এক-তৃতীয়াংশ কম প্রয়োজন হয়। এ ছাড়া ৫০ শতাংশ সেচের অর্থ সাশ্রয় হয়। ধানটি চিকন ও ভাত খেতে সুস্বাদু হওয়ায় ভালো দাম পান কৃষক। এ ছাড়া অ-মৌসুমে ধান কাটায় গোখাদ্য হিসেবে খড়ের সরবরাহ বাড়বে, এতে ভালো দামে খড় বিক্রিও করা যাবে।’

বিনা ধান-১৭ আগাম পাকে, লাভ অনেক

জাতটির চাষাবাদ সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘পাঁচ শতাংশ বীজতলায় ১০ কেজি বীজ ফেলতে হবে। জুন মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে জুলাইয়ের দ্বিতীয় সপ্তাহ (আষাঢ়ের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে শেষ সপ্তাহ) পর্যন্ত বীজতলা তৈরি করে ২০ থেকে ২৫ দিনের চারা রোপণ করলে ভালো ফসল পাওয়া যায়। তবে, জুলাইয়ের শেষ (শ্রাবণের দ্বিতীয়) সপ্তাহ পর্যন্তও বীজতলা করা যায়।

‘এ ছাড়া জুলাই মাসের শেষ সপ্তাহ থেকে আগস্টের শেষ সপ্তাহ (শ্রাবণ মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে শুরু করে ভাদ্র মাসের দ্বিতীয় সপ্তাহ) পর্যন্ত ২০ থেকে ২৫ দিন বয়সের চারা রোপণ করলে ভালো ফলন পাওয়া যাবে। বেশি বয়সের চারা লাগালে ফলন কমে যায়, তাই চার সপ্তাহের বেশি বয়সের চারা রোপণ করা কোনো অবস্থাতেই উচিত নয়।’

ড. শামছুন্নাহার জানান, বীজতলায় চারা করার পর লাইন করে চারা রোপণ করলে ফলন বেশি হয়। এ জন্য দুই থেকে তিনটি সুস্থ-সবল চারা একত্রে এক গুছিতে রোপণ করতে হবে। সারি থেকে সারির দূরত্ব ২০ সেন্টিমিটার (আট ইঞ্চি) এবং সারিতে গুছির দূরত্ব ১৫ সেন্টিমিটার (ছয় ইঞ্চি) থাকা ভালো।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর ময়মনসিংহের উপপরিচালক মো. মতিউজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জেলায় গত বছর ২৩১ হেক্টর জমিতে বিনা ধান-১৭ আবাদ হয়েছে। আগাম ধান হওয়ায় খুশি কৃষক। এ বছর ২৭০ হেক্টর জমিতে এ জাতের ধান চাষ করা হয়েছে। আগামী বছর আরও বেশি চাষ হবে।’

বিনা ধান-১৭ আগাম পাকে, লাভ অনেক

বিনা ধান-১৭ জাতের ধানের উদ্ভাবক বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মির্জা মোফাজ্জল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ জাতটি সম্পর্কে ইতোমধ্যে কৃষকদের অবগত করা হয়েছে। নওগাঁ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, ময়মনসিংহ বিভাগসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে এটি আবাদ হয়েছে। অল্প খরচে বেশি উৎপাদনসহ চাল বিক্রি করে লাভবান হওয়ায় আগ্রহ বাড়ছে কৃষকের।’

তিনি বলেন, “এ ধানগাছের প্রতিটি শিষে পুষ্ট দানার সংখ্যা ২৫০ থেকে ২৭০টি। প্রচলিত জাতের তুলনায় ইউরিয়া সার ৩০ শতাংশ কম ও জমিতে ৪০ শতাংশ পানি কম লাগে। এ কারণে ‘গ্রিন সুপার রাইস’ হিসেবেও জাতটির নামকরণ হয়েছে।”

মহাপরিচালক বলেন, ‘চলতি মাসে বিভিন্ন জাতের ধানে এখনও শিষ বের হয়নি। এগুলো পরিপক্ব হতে আরও দেড় মাস লেগে যাবে। অথচ অন্য জাতের সঙ্গে একই সময়ে লাগানো বিনা ধান-১৭ জাতের ধান কাটা শেষ হয়েছে। কিছু জমিতে ধান থাকলেও সেগুলোও সম্পূর্ণ পেকে গেছে। এখন কৃষক ধান কাটতে ও মাড়াইয়ের কাজে ব্যস্ত। আগাম ধান কাটা শেষ হওয়ায় একই জমিতে এরপর আলু, গম বা রবিশস্য চাষ করা যাবে।’

আরও পড়ুন:
হাঁস-মুরগির কলেরা: ৩০ টাকার ভ্যাকসিন ১৭০ টাকা
পাবনায় ভ্যাকসিন ছাড়াই খালি সিরিঞ্জ পুশ, দুই নার্স প্রত্যাহার
টিকা নিলেন দেশসেরা জহির-সানা-মাবিয়ারা
টিকার সব তথ্য প্রকাশ করল ভারত-বায়োটেক
কোভ্যাকসিন নিরাপদ, গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই: ল্যানসেট

শেয়ার করুন

মানুষ বেশি ভাত খায় বলে চালের ঘাটতি: কৃষিমন্ত্রী

মানুষ বেশি ভাত খায় বলে চালের ঘাটতি: কৃষিমন্ত্রী

‘বাংলাদেশের ৫০ বছর, কৃষি রূপান্তর অর্জন’ বিষয়ে সম্মেলনে বক্তব্য রাখছেন কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক।

‘আমরা অনেক বেশি চাল খাই, ভাত খাই। এজন্য চালের ঘাটতি দেখা দিচ্ছে। আমরা দিনে প্রায় ৪০০ গ্রাম চাল খাই অথচ পৃথিবীর অনেক দেশের মানুষ ২০০ গ্রাম চালও খায় না।’

বাংলাদেশের মানুষ বেশি ভাত খায় বলে চালের ঘাটতি দেখা দিয়েছে বলে মনে করেন কৃষিমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক। এ জন্য তিনি খাদ্যাভ্যাস পাল্টানোর তাগিদ দিয়েছেন।

মানুষকে ভাত কম খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর এই সদস্য বলেছেন, বিশ্বের মানুষ গড়ে যত চাল খায় বাংলাদেশের মানুষ খায় তার দ্বিগুণ।

রোববার রাজধানীতে এক কৃষি সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এই কথা বলেন। সম্মেলনের বিষয় ছিল ‘বাংলাদেশের ৫০ বছর, কৃষি রূপান্তর অর্জন।’

বাংলাদেশ কৃষি সাংবাদিক ফোরাম ও বণিক বার্তা যৌথভাবে এই সম্মেলনের আয়োজন করে।

চাল উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণ বাংলাদেশে প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে ঘাটতির তথ্য পাওয়া যায় না। তবে প্রায়ই চালের দাম বেড়ে গেলে সরকার আমদানি উন্মুক্ত করে দেয়।

সম্প্রতি চালের দাম বেড়ে যাওয়া নিয়ে আলোচনা তৈরি হয়। তবে গত দুই সপ্তাহে তা কিছুটা নিম্নমুখি। তার পরেও বাজার নিয়ন্ত্রণ সরকারি সংস্থা টিসিবির হিসাবে সরু চালের দাম গত বছরের একই সময়ের তুলনায় ১০ শতাংশ বেশি। এটি মূল্যস্ফীতির সার্বিক হারের চেয়ে বেশি।

কৃষিমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা অনেক বেশি চাল খাই, ভাত খাই। এজন্য চালের ঘাটতি দেখা দিচ্ছে। আমরা দিনে প্রায় ৪০০ গ্রাম চাল খাই অথচ পৃথিবীর অনেক দেশের মানুষ ২০০ গ্রাম চালও খায় না।

‘খাদ্যের অভাব নেই দেশে। নেই খাদ্যের সংকট ও খাবারের জন্য হাহাকার। কিন্তু মানুষ অধিক ভাত খায় বলে চালের ওপর বেশি চাপ পড়ছে। এতে প্রায়শ সংকট দেখা দিচ্ছে। বাড়ছে দামও।’

ধানজাতীয় দানাদার খাদ্যে বাংলাদেশকে সফল বলেও দাবি করেন মন্ত্রী। বলেন, খাদ্যেও দেশ অনেকটা স্বয়ংসম্পূর্ণ।

আগামী পাঁচ থেকে ছয় বছর পর দেশেই সারা বছর দেশে আম পাওয়া যাবে বলেও তথ্য দেন মন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘আমরা এখন কৃষিপণ্য রপ্তানিও করছি। তবে এই রপ্তানি সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দিতে হবে। সরকারের লক্ষ্য এখন খাদ্যে পরিপূর্ণ স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জন। এর পাশাপাশি পুষ্টিজাতীয় খাদ্য নিশ্চিত করতেও উদ্যোগী হয়েছে সরকার। তবে এরজন্য কৃষির বাণিজ্যিক রূপান্তর দরকার।’

বাংলাদেশ পরিসংখ্যার ব্যুরোর হিসাবে, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে দেশে চালের উৎপাদন ছিল ৩ কোটি ৪৮ লাখ টন। ২০২০ সালে উৎপাদন বেড়ে ৪ কোটি টন ছাড়িয়েছে।

ইন্টারন্যাশনাল ফুড পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (ইফপ্রি) গবেষণা তথ্যমতে, ২০১৮ সালে বাংলাদেশে মানুষের দৈনিক মাথাপিছু চাল খাওয়ার পরিমাণ ছিল ৩৯৬ দশমিক ৬ গ্রাম। সংস্থাটির ২০১৬ সালের হিসাবে ছিল ৪২৬ গ্রাম।

আরও পড়ুন:
হাঁস-মুরগির কলেরা: ৩০ টাকার ভ্যাকসিন ১৭০ টাকা
পাবনায় ভ্যাকসিন ছাড়াই খালি সিরিঞ্জ পুশ, দুই নার্স প্রত্যাহার
টিকা নিলেন দেশসেরা জহির-সানা-মাবিয়ারা
টিকার সব তথ্য প্রকাশ করল ভারত-বায়োটেক
কোভ্যাকসিন নিরাপদ, গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই: ল্যানসেট

শেয়ার করুন