মুজিবনগর সরকারের কর্মচারীদের ভূমি মন্ত্রণালয়ে আত্তীকরণ

মুজিবনগর সরকারের কর্মচারীদের ভূমি মন্ত্রণালয়ে আত্তীকরণ

মুজিবনগর সরকারের শপথ গ্রহন। ছবি: সংগৃহীত

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, হাইকোর্টের রিট পিটিশন ও কন্টেম্প মামলার আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে সাবেক মুজিবনগর সরকারের কর্মচারী হিসেবে দাবিদার প্রার্থীদের বিভিন্ন পদে আত্তীকরণ করছে ভূমি মন্ত্রণালয়।

মুজিবনগর সরকারের প্রকৃত কর্মচারীদের বিভিন্ন পদে আত্তীকরণ করা হচ্ছে।

ভূমি মন্ত্রণালয় বুধবার এ বিষয়ে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, হাইকোর্টের রিট পিটিশন ও কন্টেম্প মামলার আদেশের পরিপ্রেক্ষিতে সাবেক মুজিবনগর সরকারের কর্মচারী হিসেবে দাবিদার প্রার্থীদের বিভিন্ন পদে আত্তীকরণ করছে ভূমি মন্ত্রণালয়।

আত্তীকরণের জন্য প্রার্থীদের ভূমি মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবর প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ নিজ হাতে লেখা দরখাস্ত চাওয়া হয়েছে। দরখাস্ত জমা দেয়ার শেষ তারিখ আগামী ১০ নভেম্বর।

দরখাস্তের সঙ্গে প্রয়োজনীয় কাগজপত্র হিসেবে বয়স প্রমাণের জন্য শিক্ষাগত সনদ, মুজিবনগর সরকারের কর্মচারী হিসেবে নিয়োগপত্র ও ছাড়পত্র, জাতীয় পরিচয়পত্র, নাগরিক সনদ, মুজিবনগর সরকারের কর্মচারী হিসেবে আত্তীকরণের জন্য জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে মনোনয়নপত্র, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের জারি করা পরিপত্রের আলোকে মুজিবনগর সরকারের কর্মচারী হিসেবে যোগ্যতার প্রমাণ এবং সংশ্লিষ্ট পদের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতার সনদ জমা দেয়ার জন্য বলেছে ভূমি মন্ত্রণালয়।

শেয়ার করুন

মন্তব্য

শুঁটকি আহরণে দুবলার পথে জেলেরা

শুঁটকি আহরণে দুবলার পথে জেলেরা

শুঁটকি আহরণে সুন্দরবনের দুবলার চরের উদ্দেশে উপকূল ছেড়েছেন জেলেরা। ছবি: নিউজবাংলা

পূর্ব সুন্দরবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, অন্যান্য বছর নভেম্বর থেকে শুরু হলেও এ বছর ইলিশের প্রজনন রক্ষায় নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ায় আজ থেকে সুন্দরবনে শুটকি আহরণ মৌসুম শুরু হয়েছে। এবারের মৌসুমে দুবলার চরে জেলেদের জন্য ৯৮০টি ঘর ও ৬৬টি ডিপোর তৈরির অনুমোদন দেয়া হয়েছে

সুন্দরবনের দুবলার চরে শুরু হয়েছে শুঁটকি আহরণ মৌসুম, যা চলবে ৩১ মার্চ পর্যন্ত।

মৌসুম ঘিরে সুন্দরবনের দুবলার চরের উদ্দেশে উপকূল ছেড়েছেন জেলে-মহাজনরা। বন বিভাগ বলছে, শুধু বাগারহাট থেকেই দুবলার চরে যাবেন ৮ থেকে ১০ হাজার জেলে। সব মিলে উপকূলীয় এলাকা থেকে সেখানে সমাগম হবে ২০ হাজারের বেশি মানুষের।

বনবিভাগের কাছ থেকে অনুমতি পাওয়ার পর অনেক জেলে মঙ্গলবার সকালেই চরের উদ্দেশে রওনা দেন। কেউ কেউ আবার যাত্রা করেছেন রাত ১২টার দিকে।

বাগেরহাট পূর্ব সুন্দরবন বিভাগ সূত্রে জানা যায়, প্রতিবছর শীত মৌসুমে সুন্দরবনের দুবলা, মেহের আলীর চর, আলোরকোল, অফিস কিল্লা, মাঝের কিল্লা, শেলার চর, নারিকেলবাড়িয়া, ছোট আমবাড়িয়া, বড় আমবাড়িয়া, মানিক খালী, কবরখালী, চাপড়াখালীর চর, কোকিলমনি ও হলদাখালীর চরে জেলে ও মহাজনরা জড়ো হন সমুদ্রে মাছ ধরতে। এ সব চরে অস্থায়ী ঘর নির্মাণ করেন জেলেরা। পরে সুন্দরবনের চরগুলোতে শুরু করেন শুঁটকি তৈরির কাজ। পর তা দেশের বিভিন্ন এলাকাসহ বিদেশেও পাঠানো হয়।

পূর্ব সুন্দরবনের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন নিউজবাংলাকে বলেন, অন্যান্য বছর নভেম্বর থেকে শুরু হলেও এ বছর ইলিশের প্রজনন রক্ষায় নিষেধাজ্ঞা উঠে যাওয়ায় আজ থেকে সুন্দরবনে শুটকি আহরণ মৌসুম শুরু হয়েছে। এবারের মৌসুমে দুবলার চরে জেলেদের জন্য ৯৮০টি ঘর ও ৬৬টি ডিপোর তৈরির অনুমোদন দেয়া হয়েছে। মৌসুম জুড়ে চরে প্রায় ১০ হাজার জেলের সমাগম থাকবে।

তিনি আরও বলেন, গত বছর শুটকি মৌসুম থেকে ৩ কোটি ২২ লাখ টাকা রাজস্ব আদায় হয়েছিল। এবার যেহেতু একটু আগে ভাগে মৌসুম শুরু হয়েছে তাই এবার ৪ কোটি টাকা রাজস্ব আদায় হতে পারে বলে আশা করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন

বিদেশি বিনিয়োগ আনবে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্মেলন

বিদেশি বিনিয়োগ আনবে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্মেলন

প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেন, ‘এই সম্মেলনের মাধ্যমে বিদেশি বিনিয়োগকারী ও উদ্যোক্তাদের কাছে বাংলাদেশের প্রস্তুতি সম্পর্কে সম্যক ধারণা মিলবে। দেশে প্রত্যাশিত বৈদেশিক বিনিয়োগ আনতে সহায়ক হবে।’

মুজিব জন্মশতবর্ষ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন উপলক্ষে ঢাকায় শুরু হয়েছে সপ্তাহব্যাপী আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্মেলন। বৈশ্বিক বাণিজ্যে বাংলাদেশের আরও বেশি অংশগ্রহণ এবং বিনিয়োগ আকর্ষণ করাই এ সম্মেলনের মূল লক্ষ্য বলে জানালেন সংশ্লিষ্টরা।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও ঢাকা চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) যৌথ উদ্যোগে সম্মেলনটি মঙ্গলবার থেকে চলবে আগামী ১ নভেম্বর পর্যন্ত। এ সম্মেলনে অংশ নিয়েছে বাংলাদেশসহ ৩৮টি দেশের ৫৫২টি কোম্পানি।

‘বাংলাদেশ ট্রেড অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্ট সামিট ২০২১’ শীর্ষক এ ভার্চুয়াল আন্তর্জাতিক সম্মেলনের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে বাণিজ্য ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে প্রাচ্য আর পাশ্চাত্যের যোগাযোগের সেতু হিসেবে গড়ে উঠবে বাংলাদেশ।

এ সম্মেলনের লক্ষ্য বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের রপ্তানি খাতের সক্ষমতা তুলে ধরা এবং আরও বেশি বিনিয়োগ আকর্ষণ করা।

সম্মেলনের উদ্বোধনী সেশনে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পররাষ্ট্র মন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুন্সী, প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারী শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান, এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন, বাণিজ্যসচিব তপন কান্তি ঘোষ, ডিসিসিআই সভাপতি রেজওয়ান রাহমানসহ আরও অনেকে।

সম্মেলনে মোট ৬টি ওয়েবিনারের আয়োজন করা হবে। এতে সংশ্লিষ্ট খাতের দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞরা অংশ নেবেন। এসব ওয়েবিনারে জ্বালানি, তথ্য প্রযুক্তি, চামড়াজাত পণ্য, ফার্মাসিউটিক্যালস, অটোমোটিভ অ্যান্ড লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং, প্লাস্টিক পণ্য, কৃষি প্রক্রিয়াকরণ, পাট ও বস্ত্র, খুচরা ব্যবসা এসব খাতে বাংলাদেশের সম্ভাবনা ও করণীয় সম্পর্কে আলোকপাত করা হবে।

সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেন বলেন, ‘বাংলাদেশ সবসময় ব্যবসা সহায়ক দেশ, বিনিয়োগ সহায়ক দেশ। বিদেশি বিনিয়োগ আকর্ষণকারী দেশও। এই বিনিয়োগ টানতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এখন দুটি ডিপ্লোমেসি নিয়ে কাজ করছে। এর একটি হচ্ছে ইকনোমিক ডিপ্লোমেসি, যার মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশের রপ্তানি উন্নয়ন, বাজার দখল, আন্তর্জাতিক বাণিজ্য শুল্ক সুবিধা আদায়সহ বহুমুখী উন্নয়ন তৎপরতা চালানো হচ্ছে।

‘অন্যটি হচ্ছে পাবলিক ডিপ্লোমেসি, যার মাধ্যমে বিশ্বের কাছে বাংলাদেশকে ব্র্যান্ডিং করা হচ্ছে। বাংলাদেশের পণ্য সম্পর্কে ধারণা দেয়া হচ্ছে, বাংলাদেশে বিনিয়োগ সম্ভাবনা তুলে ধরা হচ্ছে।’

সালমান এফ রহমান বলেন, ‘আমাদের ভিশনারি লিডার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের উন্নয়নে সব সময়ই বৈদেশিক বিনিয়োগ বাণিজ্যকে গুরুত্ব দিয়ে আসছেন। কারণ বিদেশি বিনিয়োগের মাধ্যমে প্রযুক্তির স্থানান্তর হয়, টেকসই উন্নয়ন হয় এবং একটি বৈশ্বিক সংযোগ তৈরি হয়। এজন্য দেশীয় বিনিয়োগকারীদের পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য দেশে সবধরনের সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করেছেন।’

তিনি জানান, বাংলাদেশ এখন বিনিয়োগের সবচেয়ে আকর্ষণীয় দেশ। করোনা মহামারির সময়েও দেশে ব্যবসা-বাণিজ্য ও বিনিয়োগে স্থিতিশীল পরিবেশ বজায় রয়েছে। দেশের মানুষের ভোগ ও ক্রয় ক্ষমতা বাড়ছে। মুদ্রামান স্থিতিশীল রয়েছে। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গবেষণা প্রতিষ্ঠান দাতা সংস্থার পর্যবেক্ষণে বাংলাদেশের অগ্রগতি উঠে আসছে।

সালমান এফ রহমান বলেন, ‘এই সম্মেলনের মাধ্যমে বিদেশি বিনিয়োগকারী ও উদ্যোক্তাদের কাছে বাংলাদেশের প্রস্তুতি সম্পর্কে সম্যক ধারণা মিলবে। দেশে প্রত্যাশিত বৈদেশিক বিনিয়োগ আনতে সহায়ক হবে।’

বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ‘এলডিসি থেকে উন্নয়নশীল দেশে বাংলাদেশ। এই উত্তরণ মসৃণ করতে নিজেদের সক্ষমতা বাড়ানোর পাশাপাশি আমাদের বিপুল পরিমাণ বৈদেশিক বিনিয়োগ দরকার। দেশে যে মানব সম্পদ রয়েছে তার দক্ষতা উন্নয়ন এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে জীবনমানের উন্নয়নের জন্য বৈদেশিক বিনিয়োগ প্রয়োজন। এর পাশাপাশি আন্তর্জাতিক বাণিজ্যে নিজেদের অস্তিত্ব ধরে রাখতে রপ্তানির পরিমাণ বাড়াতে হবে।’

এফবিসিসিআই সভাপতি জসিম উদ্দিন বলেন, ‘আমাদের রপ্তানিখাত বেশি মাত্রায় তৈরি পোশাকনির্ভর। এখন সময় এসেছে অন্যান্য খাতগুলোকে নিয়ে কাজ করার। সরকার ও ব্যবসায়ীরা মিলে সেই চেষ্টাই করছে। দেশের নতুন নতুন খাত সম্প্রসারণ ও সম্ভাবনা জাগাচ্ছে। বাণিজ্য সম্মেলনে সম্ভাবনাময় খাতের ওপর যে আলোচনা হবে, তা আমাদের এই খাতগুলোতে বৈদেশিক বিনিয়োগ আসতে সহায়তা করবে।’

ঢাকা চেম্বারের সভাপতি রিজওয়ান রহমান বলেন, ‘এ মেলার মাধ্যমে বিনিয়োগ ও দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হবে। এর মাধ্যমে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক দেশি-বিদেশি উদ্যোক্তার মধ্যে যোগাযোগ হবে, যা আমাদের অর্থনীতিকে আরও শক্তিশালী করবে।’

শেয়ার করুন

রেড ক্রিসেন্টের সহায়তায় দেশে সিনোফার্মের ২ লাখ টিকা

রেড ক্রিসেন্টের সহায়তায় দেশে সিনোফার্মের ২ লাখ টিকা

২৫ অক্টোবর পর্যন্ত দেশে ৬ কোটি ১৪ লাখ ৮৯ হাজার ৭৫৩ জনকে টিকা দেয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৪ কোটি ৬২ লাখ ৭ হাজার ৬৮৮ জন। দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ২ কোটি ৮ লাখ ৬২ হাজার ৬৫ জন।

আন্তর্জাতিক স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মাধ্যমে করোনাভাইরাসের দুই লাখ ডোজ টিকা দেশে এসেছে।

মঙ্গলবার বিকেলে চীন থেকে সিনোফার্মের ওই টিকা ঢাকার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায়। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা মাঈদুল ইসলাম প্রধান সংবাদমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটির মহাসচিব ও সাবেক রেলওয়ে সচিব ফিরোজ সালাউদ্দিন বিমানবন্দরে উপস্থিত থেকে টিকাগুলো গ্রহণ করেন।

এ সময় তিনি উপস্থিত সংবাদকর্মীদের সঙ্গেও এ বিষয়ে কথা বলেন। তার সঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্মারা উপস্থিত ছিলেন। পরে টিকাগুলো সংরক্ষণের জন্য ওয়্যার হাউজে নিয়ে যাওয়া হয়।

দেশে চলতি বছরের অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার মাধ্যমে টিকা কার্যক্রম শুরু হয়। গত ৭ ফেব্রুয়ারি থেকে সারা দেশে শুরু হয় গণটিকাদান কার্যক্রম। এরপর ৮ মাসেরও বেশি সময় ধরে দেশে অ্যাস্ট্রাজনেকা, ফাইজার, মর্ডানা এবং সিনোফার্মের টিকা দেয়া হচ্ছে।

২৫ অক্টোবর পর্যন্ত দেশে ৬ কোটি ১৪ লাখ ৮৯ হাজার ৭৫৩ জনকে টিকা দেয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৪ কোটি ৬২ লাখ ৭ হাজার ৬৮৮ জন। দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ২ কোটি ৮ লাখ ৬২ হাজার ৬৫ জন।

২৭ জানুয়ারি থেকে ২৫ অক্টোবর পর্যন্ত দেয়া ৬ কোটি ১৪ লাখ ৮৯ হাজার ৭৫৩ ডোজের মধ্যে অ্যাস্ট্রাজেনেকার ১ কোটি ৩৭ লাখ ২৩ হাজার ১৩০ ডোজ, ফাইজারের ৬ লাখ ৬ হাজার ১৮৭ ডোজ, সিনোফার্মের ৪ কোটি ১৯ লাখ ৫৬ হাজার ৩২৫ ডোজ এবং মডার্নার ৫২ লাখ ৪ হাজার ১১১ ডোজ টিকা রয়েছে।

শেয়ার করুন

গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষা: ‘বি’ ইউনিটের ফল প্রকাশ

গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষা: ‘বি’ ইউনিটের ফল প্রকাশ

ফাইল ছবি

‘বি’ ইউনিটের পরীক্ষায় ৪০ এর উপরে নম্বর পেয়েছেন ১৯ হাজার ৫৩ জন পরীক্ষার্থী। প্রথম স্থান অধিকারী পেয়েছেন ৯৩.৭৫ নম্বর।

দেশের ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষার ‘বি’ ইউনিটের ফল প্রকাশ করা হয়েছে।

ফল ভর্তি বিষয়য় ওয়েবসাইটে (https://gstadmission.ac.bd/) পাওয়া যাচ্ছে।

ভর্তি পরীক্ষা আয়োজক কমিটির যুগ্ম আহ্বায়ক ও শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘গত ২৪ অক্টোবর অনুষ্ঠিত ‘বি’ ইউনিটের পরীক্ষায় ৬৩ হাজার ৫১৮ জন শিক্ষার্থী অংশ নেয়। এর মধ্যে ২ জনের ওএমআর বাতিল হয়েছে রোল কিংবা সেট কোড না লেখায়। এ ছাড়া, ৩ পরীক্ষার ওএমআর রিপোর্টিংয়ের জন্য বাতিল হয়েছে। তাই ৬৩ হাজার ৫১৩ জনের ফলাফল আমরা প্রকাশ করছি।’

‘বি’ ইউনিটের পরীক্ষায় ৪০ এর উপরে নম্বর পেয়েছেন ১৯ হাজার ৫৩ জন পরীক্ষার্থী। প্রথম স্থান অধিকারী পেয়েছেন ৯৩.৭৫ নম্বর।

গত রোববার (২৪ অক্টোবর) ‘বি’ ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়।

গুচ্ছভুক্ত ২০ বিশ্ববিদ্যালয়

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, মওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়।

এ ছাড়া, রয়েছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়, রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় এবং বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

শেয়ার করুন

সায়েন্স ল্যাবরেটরিতে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিক নিহত

সায়েন্স ল্যাবরেটরিতে নির্মাণাধীন ভবন থেকে পড়ে শ্রমিক নিহত

সহকর্মী আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘দুপুরের দিকে আমরা কয়েকজন মাচান বেঁধে প্লাস্টারের কাজ করছিলাম। হঠাৎ ওপর থেকে তার মাথায় একটি ইট পড়ে। তখন মোশারফ মাচান থেকে নিচে পড়ে যায়।’

রাজধানীর নিউমার্কেট এলাকার সায়েন্স ল্যাবরেটরিতে নির্মাণাধীন একটি ভবনের সাততলা থেকে পড়ে এক নির্মাণশ্রমিক নিহত হয়েছেন।

২৮ বছর বয়সী ওই শ্রমিকের নাম মোশারফ হোসেন। তার গ্রামের বাড়ি চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলায়।

সহকর্মীরা জানান, মঙ্গলবার বেলা ১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত অবস্থায় মোশারফকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আনলে চিকিৎসক বেলা ২টার দিকে মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের সহকর্মী আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘দুপুরের দিকে আমরা কয়েকজন মাচান বেঁধে প্লাস্টারের কাজ করছিলাম। হঠাৎ ওপর থেকে তার মাথায় একটি ইট পড়ে। তখন মোশারফ মাচান থেকে নিচে পড়ে যায়।’

তিনি বলেন, ‘মোশারফ এর আগে আট মাস এই ভবনে কাজ করে গেছে। বাড়িতে ছুটিতে গিয়েছিল। আবার দেড় মাস ধরে কাজ করছে। কে জানে আজ এভাবে তার মৃত্যু হবে।’

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের (ঢামেক) পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এএসআই আব্দুল্লাহ খান মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ঢামেক মর্গে রাখা হয়েছে। বিষয়টি সংশ্লিষ্ট থানায় জানানো হয়েছে।’

শেয়ার করুন

ফ্লাইটে ফিরলেন বিমানের পাইলটরা

ফ্লাইটে ফিরলেন বিমানের পাইলটরা

বাপা সভাপতি ক্যাপ্টেন মাহবুবুর রহমান বলেন, ‘এটা একটা মোটামুটি কনক্লুশনে আমরা আসতে পেরেছি। এ কারণে আমাদের ফ্লাইটগুলো, আমাদের সবারই ৭৫ ঘণ্টা ফ্লাইং আওয়ার হয়ে গেছে। মাসের কোটা আমরা ফিলআপ করেছি, তারপরেও আমরা ফ্লাইটগুলো করে দেব। অর্থাৎ চুক্তির বাহিরে যে ফ্লাইটগুলো সেগুলো আমরা চালাব আজ থেকে। শনিবারের সিদ্ধান্ত পর্যন্ত আমরা অপেক্ষা করছি।’

করোনার সময় পাইলটদের বেতন কাটার সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা না করায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের পাইলটরা চুক্তির অতিরিক্ত ফ্লাইট পরিচালনা না করার যে সিদ্ধান্ত নিয়েছিলেন, কর্তৃপক্ষের আশ্বাসে তা প্রত্যাহার করেছেন।

বিমান কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক শেষে এ সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন বাংলাদেশ পাইলট অ্যাসোসিয়েশনের (বাপা) সভাপতি ক্যাপ্টেন মাহবুবুর রহমান।

নিউজবাংলাকে তিনি বলেন, ‘বিমানের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের সঙ্গে আমরা কথা বলেছি। সেখানে পরিচালকরাও ছিলেন। সবার সঙ্গে বাপার নির্বাহী কমিটির বৈঠক হয়েছে। সেখানে সর্বসম্মত ভাবে সকলেই একমত হয়েছেন, আমাদের যে ওভারসিজ অ্যালায়েন্স যেটা আমাদের বেতনের অংশ, এটি আগামী শনিবারের বোর্ড মিটিংয়ে তোলা হবে। সেখানে এটি সমন্বয় করে দেয়া হবে বলে আমাদের আশ্বাস দেয়া হয়েছে।

‘এটা একটা মোটামুটি কনক্লুশনে আমরা আসতে পেরেছি। এ কারণে আমাদের ফ্লাইটগুলো, আমাদের সবারই ৭৫ ঘণ্টা ফ্লাইং আওয়ার হয়ে গেছে। মাসের কোটা আমরা ফিলআপ করেছি, তারপরেও আমরা ফ্লাইটগুলো করে দেব। অর্থাৎ চুক্তির বাহিরে যে ফ্লাইটগুলো সেগুলো আমরা চালাব আজ থেকে। শনিবারের সিদ্ধান্ত পর্যন্ত আমরা অপেক্ষা করছি।’

গত বছর দেশে করোনাভাইরাসের মহামারি শুরুর পর ব্যয় সংকোচন করতে অন্য কর্মকর্তাদের সঙ্গে নির্দিষ্ট হারে পাইলটদেরও বেতন কাটছিল বিমান কর্তৃপক্ষ।

সে জন্য এর আগে, গত জুলাইয়ে একবার চুক্তির বাহিরে ফ্লাইট চালাতে অস্বীকৃতি জানায় পাইলটরা। তবে সে সময় বিমান কর্তৃপক্ষের আশ্বাসে সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসেন তারা।

গত তিন মাসেও কর্তৃপক্ষ বেতন কাটার সিদ্ধান্ত থেকে সরে না আসায় সোমবার থেকে আবারও চুক্তির অতিরিক্ত ফ্লাইট চালানো বন্ধ করে দেয় বিমানের পাইলটরা। এতে মধ্যপ্রাচ্যগামী অন্তত দুটি ফ্লাইটের সিডিউল ওলট-পালট করতে হয় বিমান কর্তৃপক্ষকে। ভোগান্তিতে পড়েন ফ্লাইট দুটির শতাধিক যাত্রী।

বেতন কাটা নিয়ে বিমানের আদেশে বলা হয়, বিমানে কর্মরত ‘কর্মকর্তা’ এবং যেসব ককপিট ক্রুর চাকরির বয়স শূন্য থেকে পাঁচ বছর, জুলাই মাসে তাদের কোনো বেতন কাটা হবে না। তবে যেসব ককপিট ক্রুর চাকরির বয়স পাঁচ থেকে দশ বছর, জুলাই মাসে তাদের বেতন থেকে ৫ শতাংশ এবং যারা দশ বছরের বেশি সময় ধরে চাকরি করছেন, তাদের ২৫ শতাংশ কাটা হবে। এ সিদ্ধান্তের যৌক্তিকতা নিয়েই প্রশ্ন তোলেন পাইলটরা।

বিমান ব্যবস্থাপনা বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, পাইলটদের মধ্যে যাদের চাকরির বয়স পাঁচ বছরের মধ্যে স্বাভাবিক সময়ে তাদের বেতন ২ লাখ ৬ হাজার ৮৪ টাকা। যাদের চাকরির বয়স ৫ থেকে ১০ বছর, তারা ওভারসিজ ভাতা হিসেবে অতিরিক্ত পান ২ লাখ ১৬ হাজার টাকা। এতে তাদের বেতন হয় ৫ লাখ ৭৩ হাজার টাকা।

যাদের চাকরির বয়স ১০ থেকে ২০ বছর, তাদের বেতন ওভারসিজ ভাতাসহ ১০ লাখ ৭০ হাজার টাকা। আর যাদের চাকরির বয়স এর চেয়ে বেশি, তারা পান ১২ লাখ ১ হাজার টাকা।

এ ছাড়া চুক্তির অতিরিক্ত সময় দায়িত্ব পালন করলে তাদের আলাদা করে দেয়া হয় প্রোডাক্টিভিটি অ্যালাওয়েন্স।

আগে পাইলটদের নির্দিষ্ট হারে যে ওভারসিজ ভাতা দেয়া হতো, সেটি করোনায় আয় কমে যাওয়ায় পরিবর্তন করে বর্তমানে ফ্লাইং ঘণ্টা হিসেবে দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিমান বোর্ড।

বর্তমানে বিমানে সব মিলিয়ে ১৫৭ জন পাইলট কর্মরত রয়েছেন। বাপার সঙ্গে বিমানের যে চুক্তি, সেটি অনুযায়ী একজন পাইলটের দৈনিক সর্বোচ্চ ১৩ ঘণ্টা কাজ করার কথা। সপ্তাহে একজন পাইলট কাজ করবেন সর্বোচ্চ ৭৫ ঘণ্টা। এর বাইরেও তিনি সপ্তাহে দুদিন ছুটি পাবেন।

শেয়ার করুন

বিয়েবহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগে ছাত্রদল নেতাকে পিটুনি

বিয়েবহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগে ছাত্রদল নেতাকে পিটুনি

মারধরের শিকার মাসুদ রানা জেলা ছাত্রদলের সহসভাপতি ও বেড়া উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক। ছবি: নিউজবাংলা

ওসি রওশন আলী জানান, কিছুদিন ধরে রূপপুর ইউনিয়নের এক প্রবাসীর স্ত্রী সঙ্গে মাসুদ রানার বিয়েবহির্ভূত সম্পর্ক চলছিল। সোমবার দুপুরে ওই গৃহবধূর এক ভাইয়ের বাসা থেকে তাদের দুজনকে ‘আপত্তিকর অবস্থায়’ আটক করেন স্থানীয়রা। পরে মাসুদ উত্তেজিত লোকজনের পিটুনির শিকার হন।

বিয়েবহির্ভূত সম্পর্কের অভিযোগ তুলে পাবনার আমিনপুরে ছাত্রদলের এক নেতাকে পিটুনি দিয়েছে এলাকাবাসী।

পুলিশ বলছে, উপজেলার রূপপুর ইউনিয়নের ভূয়াপাড়া এলাকায় সোমবার ঘটনাটি ঘটে।

মারধরের শিকার মাসুদ রানা জেলা ছাত্রদলের সহসভাপতি ও বেড়া উপজেলা ছাত্রদলের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক।

এলাকাবাসীর বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, কিছুদিন ধরে রূপপুর ইউনিয়নের এক প্রবাসীর স্ত্রী সঙ্গে মাসুদ রানার বিয়েবহির্ভূত সম্পর্ক চলছিল। সোমবার দুপুরে ওই গৃহবধূর এক ভাইয়ের বাসা থেকে তাদের দুজনকে আপত্তিকর অবস্থায় আটক করেন স্থানীয়রা।

পরে মাসুদ রানা উত্তেজিত লোকজনের পিটুনির শিকার হন। একপর্যায়ে ঘটনাস্থল থেকে দৌড়ে পালান মাসুদ।

পুলিশ ওই গৃহবধূকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আমিনপুর থানায় নিয়ে যায়।

মাসুদ রানার দলীয় পরিচয় নিশ্চিত করে জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক কামরুজ্জামান প্রিন্স বলেন, ‘এ বিষয়ে আমরা কোনো অভিযোগ পাইনি। ফেসবুকে বিষয়টি জেনেছি। তদন্ত সাপেক্ষে দলীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আমিনপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রওশন আলী জানান, ওই নারীকে রোষাণল থেকে বাঁচাতে পুলিশি হেফাজতে নেয়া হয়। রাতে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাকে পরিবারের জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়। অভিযোগের ভিত্তিতে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।

শেয়ার করুন