১২ বছর বয়সী সেই ছাত্রলীগ নেতাকে অব্যাহতি

১২ বছর বয়সী সেই ছাত্রলীগ নেতাকে অব্যাহতি

ছাত্রলীগের কমিটি থেকে অব্যাহতি পাওয়া আজমাইন আঞ্জুম নোয়েল। ছবি: নিউজবাংলা

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নব নির্বাচিত সদস্য আজমাইন আঞ্জুম নোয়েলকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। তবে কী কারণে অব্যাহতি দেয়া হলো তা বলা হয়নি।

কুমিল্লার লালমাই উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি থেকে চতুর্থ শ্রেণির সেই ছাত্রকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

নিউজবাংলায় সংবাদ প্রকাশের এক ঘণ্টা পর সংগঠনের পক্ষ থেকে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে এই সিদ্ধান্তের কথা জানান কুমিল্লা জেলা ছাত্রলীগ দক্ষিণের সভাপতি আবু তৈয়ব অপি এবং সাধারণ সম্পাদক লোকমান রুবেল।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, নব নির্বাচিত সদস্য আজমাইন আঞ্জুম নোয়েলকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। তবে কী কারণে অব্যাহতি দেয়া হলো তা বলা হয়নি।

কুমিল্লা জেলা ছাত্রলীগ দক্ষিণের সভাপতি আবু তৈয়ব অপি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘কম্পিউটার টাইপিং মিসটেক হইছে। আমরা সবাইকে সতর্ক করেছি। এমন ভুল যেন আর না হয়।’

আজমাইন আঞ্জুম নোয়েল লালমাই উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটিতে পদ পেলে ফেসবুকে শুরু হয় আলোচনা-সমালোচনা।

উপজেলা প্রতিষ্ঠার চার বছর পর মঙ্গলবার কুমিল্লার লালমাই উপজেলা ছাত্রলীগের প্রথম কমিটি গঠন করা হয়।

কমিটিতে উপজেলার বাকই উত্তর ইউনিয়নের ছাত্রলীগের সভাপতি শাহপরান সওদাগরকে সভাপতি ও বাগমারা উত্তর ইউনিয়নের সহসভাপতি আরিফুল ইসলাম রাব্বিকে সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে।

৭১ সদস্যের কমিটির সবাইকে শুভেচ্ছা জানিয়ে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি আবু তৈয়ব অপি ও সাধারণ সম্পাদক লোকমান হোসেন রুবেল পোস্ট দেন।

কুমিল্লা জেলা ছাত্রলীগ দক্ষিণের সহসভাপতি জাহিদুল ইসলাম চৌধুরী শিপন তার ফেসবুকে লেখেন, চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থী কুমিল্লা লালমাই উপজেলা ছাত্রলীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য।

ছাত্রলীগের কমিটিতে ছেলের থাকার বিষয়ে জানতে চাইলে ইউনিভার্সাল কামাল বলেছিলেন, ‘আমার ছেলের বয়স ১২। সে কুমিল্লা মহানগরীর একটি স্কুলের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র। আর বঙ্গবন্ধু যেখানে ১০ বছর বয়সে ছাত্রলীগ করেছেন, সেখানে আমার ছেলেকে নিয়ে সমস্যা হবে না। আর যদি সমস্যা হয়, তাহলে আমি বিষয়টার সমাধান করব।’

আরও পড়ুন:
মধুর ক্যান্টিনে পাঠচক্র করবে ছাত্রলীগ
বিএনপি নেতার ছেলে ছাত্রলীগের পদে
পুলিশ লাঞ্ছনায় ছাত্রলীগ নেতার কারাদণ্ড
‘ছাত্রলীগ মানুষের উপকার করে জানা ছিল না’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

রঙিন ফানুস উড়াল এবিএসবি

রঙিন ফানুস উড়াল এবিএসবি

প্রবারণা পূর্ণিমায় নন্দনকানন চট্টগ্রাম বৌদ্ধ বিহার এবং ঢাকা ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারে ফানুসগুলো উত্তোলন করা হয়।

বাংলাদেশের বৌদ্ধ শিক্ষার্থীদের ধর্মীয় ও সামাজিক সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অফ বুড্ডিস্ট স্টুডেন্টস অফ বাংলাদেশের (এবিএসবি) আয়োজনে প্রবারণা পূর্ণিমায় আকাশে উড়েছে চিত্রকর্মে রঙিন ফানুস।

নন্দনকানন চট্টগ্রাম বৌদ্ধ বিহার এবং ঢাকা ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারে বুধবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে ফানুসগুলো উত্তোলন করা হয়।

এর আগে ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগে ফানুস তৈরির কর্মশালায় সকল বয়সের মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেন।

এবিএসবির উদ্যোগে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো হ্যান্ডপেইন্টেড ফানুস অর্থাৎ হাতে আঁকা রঙিন ফানুস উড়ল। প্রতিটি ফানুসে মহামতি গৌতম বুদ্ধের জীবনের সকল গুরুত্বপূর্ণ সময়ের ছবি সুনিপুণভাবে তুলে ধরা হয়।

আরও পড়ুন:
মধুর ক্যান্টিনে পাঠচক্র করবে ছাত্রলীগ
বিএনপি নেতার ছেলে ছাত্রলীগের পদে
পুলিশ লাঞ্ছনায় ছাত্রলীগ নেতার কারাদণ্ড
‘ছাত্রলীগ মানুষের উপকার করে জানা ছিল না’

শেয়ার করুন

মুগদা হাসপাতালে আগুন, দগ্ধ ৪

মুগদা হাসপাতালে আগুন, দগ্ধ ৪

রাজধানীর মুগদা হাসপাতালের আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করে ফায়ার সার্ভিসের সাত ইউনিট। ছবি: সাইফুল ইসলাম/নিউজবাংলা

মুগদা থানার এসআই প্রাণতোষ বণিক বৃহস্পতিবার দুপুরে নিউজবাংলাকে জানান, দগ্ধ চারজনকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

রাজধানীর মুগদা জেনারেল হাসপাতালে আগুনে চারজন দগ্ধ হয়েছেন, যাদের মধ্যে একজনের অবস্থা গুরুতর।

তাদের ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

মুগদা থানার উপপরিদর্শক (এসআই) প্রাণতোষ বণিক বৃহস্পতিবার দুপুরে নিউজবাংলাকে বিষয়টি জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘হাসপাতালের ৬ তলায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনাটি ঘটে। এসি বিস্ফোরণ থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়েছে বলে আমরা জানতে পেরেছি। হাসপাতালের ৬ তলায় নির্মাণাধীন আইসিইউ ফ্লোরে আগুনটি মূলত ছড়ায়, তবে আইসিইউ নির্মাণাধীন থাকায় এখানে কোনো রোগী ছিল না।

‘আগুনের সময় আইসিইউতে একজন নার্স ও তিনজন স্টাফ ছিলেন। এই চারজন দগ্ধ হয়েছেন, যাদের মধ্যে নার্সের অবস্থা গুরুতর। আহতদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজে হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে পাঠানো হয়েছে।’

এর আগে ফায়ার সার্ভিস জানায়, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আগুন লাগে। বাহিনীর সাত ইউনিট ১২টা ৫৮ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

আগুন লাগার পর ফায়ার সার্ভিসের মিডিয়া অফিসার মো. রায়হান নিউজবাংলাকে জানিয়েছিলেন, হাসপাতালের ছয় তলায় আগুন লাগে। ফায়ার সার্ভিসের তিন ইউনিট খবর পাওয়ার পরপরই ঘটনাস্থলে যায়। পরে তাদের সঙ্গে যোগ দেয় আরও চার ইউনিট।

আরও পড়ুন:
মধুর ক্যান্টিনে পাঠচক্র করবে ছাত্রলীগ
বিএনপি নেতার ছেলে ছাত্রলীগের পদে
পুলিশ লাঞ্ছনায় ছাত্রলীগ নেতার কারাদণ্ড
‘ছাত্রলীগ মানুষের উপকার করে জানা ছিল না’

শেয়ার করুন

ছাত্রদল থেকে অনুপ্রবেশ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে বহিস্কার

ছাত্রদল থেকে অনুপ্রবেশ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে বহিস্কার

সদ্য বহিস্কার হওয়া গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল্লাহ আল মেহেদী রাসেল। ছবি: নিউজবাংলা

স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক আজিজুল হক আজিজ মুঠোফোনে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রাসেল মূলত জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী। তিনি মুজিব আদর্শের সৈনিক নন। তিনি বিভিন্ন অপরাধ থেকে বাঁচতে ছাত্রদল থেকে সেচ্ছাসেবক লীগে ঢুকে পড়েন।’

ছাত্রদল থেকে আওয়ামী লীগের অঙ্গ সংগঠন স্বেচ্ছাসেবক লীগে অনুপ্রবেশ করায় আব্দুল্লাহ আল মেহেদী রাসেলকে বহিস্কার দেয়া হয়েছে।

কেন্দ্রীয় স্বেচ্ছাসেবক লীগের দপ্তর সম্পাদক আজিজুল হক আজিজ স্বাক্ষরিত অব্যাহতি পত্রে ২০ অক্টোবর রাতে এই ঘোষণা দেয়া হয়েছে।

রাসেল গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহবায়ক ছিলেন।

ওই চিঠিতে বলা হয়, রাসেলের বিরুদ্ধে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও গঠনতন্ত্র বিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার সুস্পষ্ট অভিযোগ রয়েছে। এতে সংগঠনের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হয়েছে।

চলতি মাসে সংগঠনটির জেলা সভাপতি ও সম্পাদকের লিখিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সিদ্ধান্ত মোতাবেক তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়।

এ বিষয়ে সংগঠনটির কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক আজিজুল হক আজিজ মুঠোফোনে নিউজবাংলাকে বলেন, ‘রাসেল মূলত জাতীয়তাবাদে বিশ্বাসী। তিনি মুজিব আদর্শের সৈনিক নন। তিনি বিভিন্ন অপরাধ থেকে বাঁচতে ছাত্রদল থেকে সেচ্ছাসেবক লীগে ঢুকে পড়েন।’

এসব কারণে রাসেলকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

ছাত্রদল থেকে অনুপ্রবেশ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে বহিস্কার

রাসেল ২০০১ সালে বামনডাঙ্গা আঞ্চলিক ছাত্রদলের যুগ্ম আহ্বায়ক এবং ২০০৩ সালে সুন্দরগঞ্জ উপজেলা ছাত্রদলের সহসাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন বলে জানা গেছে।

২০১০ সালে স্থানীয় আজেপাড়া দাখিল মাদ্রাসায় কমিটি নিয়ে দ্বন্দ্বের জেরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবি ভাঙচুরের অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলাও হয়।

আরও পড়ুন:
মধুর ক্যান্টিনে পাঠচক্র করবে ছাত্রলীগ
বিএনপি নেতার ছেলে ছাত্রলীগের পদে
পুলিশ লাঞ্ছনায় ছাত্রলীগ নেতার কারাদণ্ড
‘ছাত্রলীগ মানুষের উপকার করে জানা ছিল না’

শেয়ার করুন

বাংলাদেশ সকল ধর্মের, সকল বর্ণের: প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশ সকল ধর্মের, সকল বর্ণের: প্রধানমন্ত্রী

কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের নবনির্মিত অফিস ভবনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: নিউজবাংলা

স্বাধীনতা যুদ্ধে কোনো ধর্মীয় পরিচয় দেখা হয়নি উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মহান মুক্তিযুদ্ধে যারা জীবন দিয়েছেন সেখানে কিন্তু কোনো ধর্ম দেখে না। যারা রক্ত দিয়েছেন তাদের সকলের রক্ত, যে যে ধর্মের হোক একাকার হয়ে মিশে গেছে। কাজেই এটা সবার মনে রাখতে হবে, বাংলাদেশ সকল ধর্মের, সকল বর্ণের, সব শ্রেণি পেশার মানুষের। সকলেই একটা মর্যাদা নিয়ে চলবে, সম্মান নিয়ে চলবে, সেটাই আমাদের স্মরণ রাখতে হবে।’

শারদীয় দুর্গাপূজার সময় ঘটে যাওয়া সাম্প্রদায়িক সহিংসতাকে দুঃখজনক বলে উল্লেখ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বলেছেন, বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক দেশ। এখানে সব ধর্মের লোকদের সম্প্রীতি নিয়ে বাস করতে হবে।

কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের নবনির্মিত অফিস ভবনের উদ্বোধনী আয়োজনে বৃহস্পতিবার দুপুরে গণভবন প্রান্ত থেকে ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন সরকার প্রধান।

বাংলাদেশ অসাম্প্রদায়িক চেতনাতেই থাকবে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমাদের বাংলাদেশে আমরা অসাম্প্রদায়িক সমাজে বসবাস করি। সেখানে সকল ধর্মের সঙ্গে আমাদের সম্প্রীতি থাকবে। সম্প্রীতি নিয়েই আমাদের চলতে হবে। যুগ যুগ ধরেই কিন্তু সকল ধর্মের মানুষ আমরা একসঙ্গে বসবাস করে আসছি।’

স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় কোনো ধর্মীয় পরিচয় দেখা হয়নি বলেও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘মহান মুক্তিযুদ্ধে যারা জীবন দিয়েছেন সেখানে কিন্তু কোনো ধর্ম দেখে না। যারা রক্ত দিয়েছেন তাদের সকলের রক্ত, যে যে ধর্মের হোক একাকার হয়ে মিশে গেছে। কাজেই এটা সবার মনে রাখতে হবে, বাংলাদেশ সকল ধর্মের, সকল বর্ণের, সব শ্রেণি পেশার মানুষের। সকলেই একটা মর্যাদা নিয়ে চলবে, সম্মান নিয়ে চলবে, সেটা আমাদের স্মরণ রাখতে হবে।’

কুমিল্লার ঘটনাটি উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ‘কুমিল্লায় যে ঘটনা ঘটে গেছে সেটা খুব দুঃখজনক। কারণ মানবধর্মকে সম্মান করা এটা ইসলামের শিক্ষা। নিজের ধর্ম পালনের অধিকার যেমন সবার আছে, অন্যের ধর্মকেও কেউ হেয় করতে পারে না। এটা ইসলাম শিক্ষা দেয় না। আর নিজের ধর্মকে সম্মান করার সঙ্গে সঙ্গে অন্যের ধর্মকেও সম্মান করতে হয়। আর অন্যের ধর্মকে যদি হেয় করা হয়, তাহলে নিজের ধর্মকে অসম্মান করা হয়।’

কুমিল্লার ঘটনায় অন্য ধর্মকে অসম্মান করতে গিয়ে পবিত্র কোরআন শরীফ অবমাননা করা হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘আমাদের পবিত্র কোরআন শরীফকে অবমাননা করেছে অন্যের ধর্মকে অসম্মান করতে গিয়ে। এটাই হচ্ছে সব থেকে দুঃখজনক। আমি এটাই বলব, যার যার নিজের ধর্মের সম্মান নিজেকে রক্ষা করতে হবে।’

আইন নিজের হাতে তুলে না নিতেও সবাইকে সতর্ক করেছেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘আরেকটি কথা, আইন কেউ হাত তুলে নেবে না। কেউ যদি অপরাধ করে সে যেই হোক অপরাধীদের বিচার হবে। আমাদের সরকার সেই বিচার করবে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমাদের নবী করিম (সা.) বলেছেন, ধর্ম নিয়ে কেউ বাড়াবাড়ি করবে না। আমাদের সবারই সে কথাটা মেনে চলতে হবে। সে কথাটা স্মরণ করতে হবে। সেই কথাটা জানতে হবে। তাহলেই আমাদের ইসলামের প্রকৃত শিক্ষাটা পাব। প্রতিটি ধর্মই শান্তির বাণীর কথা বলে। সকলেই শান্তি চায়।’

বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘আমরা জানি যে, সবসময় এরকম একেকটা ঘটনা ঘটানোর চেষ্টা করা হয়। অথচ বাংলাদেশটা আজকে এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা মুজিববর্ষ উদযাপন করছি, আমরা স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপন করছি। এই স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে, মুজিববর্ষে আমরা উন্নয়নশীল দেশের মর্যাদা পেয়েছি। এই মর্যাদা রক্ষা করে আমাদের উন্নয়নের পথে এগিয়ে যেতে হবে।’

সম্প্রীতি রক্ষায় আওয়ামী লীগকে নির্দেশনা

দেশের কোথাও যাতে সাম্প্রদায়িক সংঘাত না হয়, সেজন্য সারা দেশের আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীদের এলাকায় এলাকায় নজরদারি বাড়াতে নির্দেশ দিয়েছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি।

তিনি বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বজায় রাখতে হবে। প্রত্যেকটা এলাকায় এলাকায় আমাদের নেতা-কর্মীদেরকে নজরদারি বাড়াতে হবে এবং শান্তি সম্মেলন, শান্তি মিছিল, শান্তির সভা করতে হবে।’

সারা দেশে সম্প্রীতির ব্যবস্থা নিতেও দলীয় কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান বঙ্গবন্ধু কন্যা। বলেন, ‘যাতে কোনো প্রকার সংঘাত দেখা না দেয়। কারণ এই মাটিতে প্রতিটা ধর্মের মানুষ, সে মুসলমান হোক, হিন্দু হোক, খ্রিস্টান হোক, বোদ্ধ হোক সকলেই যেন ভালোভাবে বাঁচতে পারে।

‘আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের মনে রাখতে হবে, আওয়ামী লীগের জন্ম হয়েছে মানুষের সেবা করতে।’

এসময় কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের নতুন কার্যালয় প্রসঙ্গে দলটির প্রধান বলেন, ‘যেহেতু এটা কুমিল্লা শহরে, এটাকে শুধু মহানগর অফিস বললে হবে না, এটা কুমিল্লা আওয়ামী লীগ অফিসই বলতে হবে।’

আরও পড়ুন:
মধুর ক্যান্টিনে পাঠচক্র করবে ছাত্রলীগ
বিএনপি নেতার ছেলে ছাত্রলীগের পদে
পুলিশ লাঞ্ছনায় ছাত্রলীগ নেতার কারাদণ্ড
‘ছাত্রলীগ মানুষের উপকার করে জানা ছিল না’

শেয়ার করুন

মেঘনা থে‌কে কোস্ট গার্ড সদস্যের মরদেহ উদ্ধার

মেঘনা থে‌কে কোস্ট গার্ড সদস্যের মরদেহ উদ্ধার

হিজলা উপ‌জেলার হ‌রিনাথপুর ইউ‌নিয়নসংলগ্ন মেঘনা নদী‌ থে‌কে বৃহস্প‌তিবার সকা‌লে পার‌ভেজের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে বলে নি‌শ্চিত ক‌রে‌ছেন কোস্ট গার্ড ব‌রিশাল স্টেশ‌নের মি‌ডিয়া কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট এস এম তাহ‌সিন রহমান।

ব‌রিশা‌লের মেঘনা নদী থে‌কে নি‌খোঁ‌জের দুই দিন পর কোস্ট গার্ড সদস‌্যের মরদেহ উদ্ধার ক‌রা হ‌য়ে‌ছে।

হিজলা উপ‌জেলার হ‌রিনাথপুর ইউ‌নিয়নসংলগ্ন মেঘনা নদী‌ থে‌কে বৃহস্প‌তিবার সকা‌লে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

মৃত কোস্ট গার্ড সদস্যের নাম পার‌ভেজ বলে নিশ্চিত করেছেন কোস্ট গার্ড ব‌রিশাল স্টেশ‌নের মি‌ডিয়া কর্মকর্তা লেফটেন্যান্ট এস এম তাহ‌সিন রহমান।

তি‌নি জানান, মঙ্গলবার ভো‌রে হিজলার মেমা‌নিয়া ইউ‌নিয়নসংলগ্ন মেঘনা নদী‌তে জে‌লে‌দের ট্রলা‌রের সঙ্গে কোস্ট গা‌র্ডের ট্রলা‌রের সংঘর্ষ হয়। এ‌তে কোস্ট গা‌র্ডের ট্রলার‌ থে‌কে দুজন নদী‌তে প‌ড়ে যান।

এ সময় একজনকে উদ্ধার করা গেলেও পার‌ভেজ নি‌খোঁজ ছি‌লেন।

আরও পড়ুন:
মধুর ক্যান্টিনে পাঠচক্র করবে ছাত্রলীগ
বিএনপি নেতার ছেলে ছাত্রলীগের পদে
পুলিশ লাঞ্ছনায় ছাত্রলীগ নেতার কারাদণ্ড
‘ছাত্রলীগ মানুষের উপকার করে জানা ছিল না’

শেয়ার করুন

মুগদা হাসপাতালের আগুন নিয়ন্ত্রণে

মুগদা হাসপাতালের আগুন নিয়ন্ত্রণে

রাজধানীর মুগদা হাসপাতালের একাংশ। ছবি: সংগৃহীত

ফায়ার সার্ভিস জানায়, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আগুন লাগে। বাহিনীর সাত ইউনিট ১২টা ৫৮ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

রাজধানীর মুগদা হাসপাতালে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

ফায়ার সার্ভিস জানায়, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আগুন লাগে। বাহিনীর সাত ইউনিট ১২টা ৫৮ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে।

আগুন লাগার পর ফায়ার সার্ভিসের মিডিয়া অফিসার মো. রায়হান নিউজবাংলাকে বলেছিলেন, ‘হাসপাতালের ছয় তলায় আগুন লেগেছে। তিনটি ইউনিট ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়েছে। চারটি ইউনিট ঘটনাস্থলে যাচ্ছে।’

আগুন কীভাবে লেগেছে কিংবা এতে কী ধরনের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, তা তাৎক্ষণিকভাবে জানাতে পারেনি ফায়ার সার্ভিস।

আরও পড়ুন:
মধুর ক্যান্টিনে পাঠচক্র করবে ছাত্রলীগ
বিএনপি নেতার ছেলে ছাত্রলীগের পদে
পুলিশ লাঞ্ছনায় ছাত্রলীগ নেতার কারাদণ্ড
‘ছাত্রলীগ মানুষের উপকার করে জানা ছিল না’

শেয়ার করুন

এক দিনের বন্যায় বিপর্যস্ত উত্তরের ৩ জেলা

এক দিনের বন্যায় বিপর্যস্ত উত্তরের ৩ জেলা

উজানের ঢলে এক দিনের বন্যায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে তিস্তার তীরবর্তী নিম্নাঞ্চল। ছবি: নিউজবাংলা

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নীলফামারীর ডালিয়ার বন্যা পূর্বাভাস ও সতর্কীকরণ কেন্দ্রের কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৬টার পর তিস্তার পানি বিপৎসীমার ৩০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এক দিনের বন্যা ও ভাঙনে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে তিস্তার তীরবর্তী নীলফামারী, লালমনিরহাট ও রংপুর জেলার নিম্নাঞ্চল। পানিবন্দি হয়ে পড়েছে এসব এলাকার অর্ধলাখ মানুষ। চোখের সামনে ঘরবাড়ি, ফসল বন্যায় নষ্ট হতে দেখে বলার ভাষা হারিয়েছেন ক্ষতিগ্রস্ত অনেকে।

নীলফামারী

উজানের ঢলে বুধবার ভোরে প্রথম বিধ্বস্ত হয় ভারত-বাংলাদেশের জিরো পয়েন্টে থাকা নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার পূর্বছাতনাই ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ডের গ্রোয়েন বাঁধ।

পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) জানায়, বাঁধের ৬০ মিটার ভেঙে যাওয়ায় তিন শতাধিক বসতঘরসহ কয়েক শ হেক্টর ফসলি জমি পানিতে তলিয়ে যায়।

বন্যায় চরের শত শত হেক্টরের ভুট্টা, উঠতি আমন ধান, শাকসবজি, পুকুরের মাছ, বসতঘর ভেসে প্রায় ২৫ হাজার পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

এক দিনের বন্যায় বিপর্যস্ত উত্তরের ৩ জেলা

বন্যায় ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে পূর্বছাতনাই ঝাড় সিংহেশ্বর গ্রামের বৃদ্ধা মোহনা বেওয়ার। খোলা আকাশের নিচে কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, ‘মোর (আমার) সব শেষ হইল (হয়েছে)। ঘর, গরু-ছাগল সব মোর এই বন্যা নিয়ে গেইল। অ্যালা (এখন) কি হইবে মোর?’

একই গ্রামের রজব আলী বলেন, ‘ফজর নামাজ পড়ার জন্য মসজিদে যাই। তখন বাঁধ ভাঙার খবর পাই। নামাজ শেষে বের হয়ে দেখি নদীর পানি বাড়তাছে। ৩০ মিনিটের মধ্যে বাড়িতে কোমর পর্যন্ত পানি উঠে আসে।’

এক দিনের বন্যায় বিপর্যস্ত উত্তরের ৩ জেলা

বাঁধ ভাঙার পরপরই নীলফামারী জেলা প্রশাসন ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যসহ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন দ্রুত উদ্ধারকাজ চালায়।

নীলফামারী জেলা প্রশাসক (ডিসি) হাফিজুর রহমান চৌধুরী জানান, প্রাথমিকভাবে ডিমলা উপজেলায় ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য জিআরের ৪০ টন চাল ও টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। শহর রক্ষা বাঁধসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নেয়া বন্যা ও ভাঙন কবলিত পরিবারগুলোকে শুকনো খাবার বিতরণ করা হচ্ছে।

এক দিনের বন্যায় বিপর্যস্ত উত্তরের ৩ জেলা

ডিমলা উপজেলা ফায়ার সর্ভিসের ইনচার্জ এটি এম গোলাম মোস্তফা জানান, তিস্তার বন্যায় চর এলাকায় আটকে পড়া অসংখ্য পরিবারকে উদ্ধার করে নিরাপদে সরিয়ে আনা হয়েছে। এ কারণে কোনো হতাহতের ঘটনা ঘটেনি।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের নীলফামারীর ডালিয়ার বন্যা পূর্বাভাস ও সর্তকীকরণ কেন্দ্রের কর্মকর্তা নুরুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার সকাল ৬টার পর তিস্তার পানি বিপৎসীমার ৩০ সেন্টিমিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এক দিনের বন্যায় বিপর্যস্ত উত্তরের ৩ জেলা

পাউবোর প্রধান প্রকৌশলী (উত্তরাঞ্চল) জ্যোতি প্রসাদ ঘোষ বলেন, ‘এই বন্যায় তিস্তা ব্যারেজ ও নদী রক্ষার প্রায় ৯টি স্পার্ক, ক্রস ও গ্রোয়েন বাঁধ বিধ্বস্ত হয়ে ৫০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।’

লালমনিরহাট

দেশের সর্ববৃহৎ সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারেজের লালমনিরহাট অংশে প্রচণ্ড পানির চাপে ফ্লাড বাইপাস বাঁধের ৩০০ মিটার ভেঙে যায়।

জেলা পাউবো সংশ্লিষ্টরা জানায়, ৬৯৬ মিটার দীর্ঘ এই ব্যারেজ রক্ষা বাঁধের ৩০০ মিটার ভেঙে যাওয়ায় নীলফামারী ও লালমনিরহাট জেলার সড়ক পথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

এক দিনের বন্যায় বিপর্যস্ত উত্তরের ৩ জেলা

পাউবোর উত্তরাঞ্চলীয় প্রধান প্রকৌশলী জ্যোতি প্রসাদ ঘোষ বলেন, ‘অনেক জায়গায় ভাঙন দেখা দিয়েছে; আমরা প্রটেক্টশন দেয়ার চেষ্টা করছি। এখনও আমাদের কাজ চলছে।’

রংপুর

তিস্তায় হঠাৎ পানি বেড়ে যাওয়ায় রংপুরের গংগাচড়া উপজেলার তিন ইউনিয়নের হাজার হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। বানভাসীরা কেউ সড়কে, কেউ বাঁধে, কেউ বা আবার অস্থায়ী তাঁবুতে রাত কাটিয়েছেন। গৃহপালিত পশু রাখা হয়েছে সড়কের ওপর। বন্যা কবলিত এলাকায় দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ পানি ও শুকনো খাবারের সংকট।

হঠাৎ বন্যায় শত শত একর ফসলি জমির আবাদ নষ্ট হয়েছে। পানির তোড়ে কাঁচা রাস্তা বিলীন হয়ে যাওয়ায় বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে যোগাযোগ ব্যবস্থা।

এক দিনের বন্যায় বিপর্যস্ত উত্তরের ৩ জেলা

বানভাসী মজনু মিয়া বলেন, ‘নদী তো শুকনে ছিল। শুকনে নদীত হঠাৎ পানি। সেই পানি বাড়িঘর ভাসি গেইল। গরু-ছাগল, বাচ্চা নিয়ে আস্তাত আছি। খুব ক্ষতি হইচে।’

আরেক বাসিন্দা শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘পানিতে বাড়ি যাওয়ার রাস্তা নাই। কষ্ট করি রাস্তার উপরে আছি। রান্না নাই, খাওয়াও নাই।’

সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘হঠাৎ করি বন্যা আসি, ধান চাল সোগ শ্যাষ। ৬ দোন মাটির ধান কাটি থুচি আর সব ভাসি গেইচে। ছৈল পৈল নিয়ে কি খামো। কপাল নিয়ে গেইচে পানি।’

এক দিনের বন্যায় বিপর্যস্ত উত্তরের ৩ জেলা

আব্দুল মজিত বলেন, ‘হামার আবাদি জমি সোগ তলে গেইচে। হঠাৎ এমন করি ভারত পানি ছাড়লে হামরা বাঁচমো ক্যামন করি? একে তো এবারের বানোত (বন্যা) হামার মেলা ক্ষয়ক্ষতি হইছে। তার ওপর এই অসময়ে ফির বান! নদীপাড়োত হামার সুখ-শান্তি নাই।’

বন্যাকবলিত এলাকায় গিয়ে দেখা গেছে, গংগাচড়ার নোহালী, আলমবিদিতর, কোলকোন্দ, গজঘণ্টা লক্ষ্মীটারী ও মর্ণেয়া ইউনিয়নের কোথাও আংশিক, কোথাও ৩ থেকে ৫টি পাড়াসহ তিস্তা নদীর উত্তরে গংগাচড়া উপজেলার সব মানুষ এখন পানিবন্দি হয়ে মানবতার জীবন যাপন করছেন। বিভিন্ন এলাকায় দেখা দিয়েছে ভাঙন।

এক দিনের বন্যায় বিপর্যস্ত উত্তরের ৩ জেলা

লক্ষ্মীটারী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল হাদি বলেন, ভয়াবহ এ বন্যায় ইউনিয়নের কেল্লারপাড়, শংকরদহ, বাগেরহাটসহ বেশ কিছু গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। তিস্তার ঝুঁকিপূর্ণ এলাকার মানুষজনকে নিরাপদ স্থানে নিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এখন যে পরিস্থিতি, তাতে আর দু-এক দিন এভাবে পানি বাড়তে থাকলে স্মরণকালের বন্যা হবার সম্ভাবনা রয়েছে।

রংপুর জেলা প্রশাসক আসিব আহসান বলেন, ‘বুধবার বন্যাকবলিতদের ২০ টন চাল ও ৫০০ প্যাকেট শুকনা খাবার দেয়া হয়েছে। আমাদের কাছে পর্যাপ্ত ত্রাণ রয়েছে। প্রয়োজনে সেগুলো বিতরণ করা হবে।’

আরও পড়ুন:
মধুর ক্যান্টিনে পাঠচক্র করবে ছাত্রলীগ
বিএনপি নেতার ছেলে ছাত্রলীগের পদে
পুলিশ লাঞ্ছনায় ছাত্রলীগ নেতার কারাদণ্ড
‘ছাত্রলীগ মানুষের উপকার করে জানা ছিল না’

শেয়ার করুন