টাওয়ারের লাশে ধোঁয়াশায় পুলিশ

টাওয়ারের লাশে ধোঁয়াশায় পুলিশ

তদন্ত কর্মকর্তা এসআই নুরুল বলেন, ‘এলাকার সবাই মিলে কিছু একটা লুকাচ্ছে মনে হয়। এভাবে সবাইকে চার্জও করতে পারি না। তবে খোকনের কল লিস্ট ধরে কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি, কয়েকজনকে নজরদারিতে রেখেছি। দেখা যাক কী হয়।’

চট্টগ্রামের খুলশীতে বিদ্যুতের টাওয়ারে খোকন নামের এক যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় এখনও ধোঁয়াশায় রয়েছে পুলিশ।

চারদিন পেরিয়ে গেলেও ঘটনার কোনো ক্লু পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা খুলশী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) নুরুল আবছার।

তিনি নিউজবাংলাকে বলেন, ‘খোকন নামের ওই ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধারের পর সুরতহাল প্রতিবেদনে দেখা যায়, তার মুখে কাপড় গোজানো। মাথা ন্যাড়া ও দাড়ি সেভ করা। মুখের ভেতর কাপড় ও মাথা ন্যাড়ার কারণে আমরা এটা খুন বলে ধারণা করছি। আত্মহত্যা করলে মুখে কাপড় গোজানো থাকবে কেন?

‘আমরা এসব বিষয় সামনে রেখে এগোচ্ছি। ঘটনার পরদিন থেকে আজ পর্যন্ত সিনিয়র অফিসাররা প্রতিদিন ঘটনাস্থলে গিয়েছি, ওই এলাকার মানুষের সঙ্গে কথা বলছি। কেউ কিছু বলছে না।’

তদন্ত কর্মকর্তা এসআই নুরুল বলেন, ‘আমার মনে হচ্ছে এলাকার সবাই মিলে কিছু একটা লুকাচ্ছে। এভাবে মনে হওয়া থেকে তো সবাইকে চার্জও করতে পারি না। তবে খোকনের কল লিস্ট ধরে কয়েকজনকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছি, কয়েকজনকে নজরদারিতে রেখেছি। দেখা যাক কী হয়।’

বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টার দিকে খুলশীর রূপসী পাহাড়ে বৈদ্যুতিক খুঁটি থেকে খোকনের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। সে সময় পুলিশ বলেছিল, খোকনকে হত্যার পর খুনিরা বৈদ্যুতিক টাওয়ায় ঝুলিয়ে রাখে।

আরও পড়ুন: হত্যার পর বিদ্যুতের টাওয়ারে ঝুলিয়ে রাখল খুনি


৩০ বছর বয়সী খোকন ওই এলাকার আব্দুল খালেকের ছেলে। তিনি এলাকায় ইট বালুর ব্যবসা করতেন।

মরদেহ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করে খুলশী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহিনুজ্জামান শাহিন বলেন, ‘মরদেহ দেখে মনে হয়েছে এটি কয়েকদিন পুরোনো। ময়নাতদন্তের জন্য তা চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। চারদিন আগে তিনি নিখোঁজ হয়েছিলেন।’

ঘটনার পরদিন খুলশী থানায় অজ্ঞাতপরিচয় ব্যক্তিদের আসামি করে হত্যা মামলা করেন খোকনের ছোটভাই আবদুল্লাহ বাবু।

আরও পড়ুন:
রায়হান হত্যা: দায়মুক্তি পেতে স্ত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব
বিজিবি সদস্যকে ধাক্কা দিয়ে নদীতে লাফ, মরদেহ উদ্ধার
বাঁশঝাড়ে কিশোরের মরদেহ
নির্মাণাধীন ভবন থেকে ইট পড়ে শিশু নিহত
হিলি স্থলবন্দরে ভারতীয় ট্রাকচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

মন্তব্য

চালক হত্যার পর ইজিবাইক ছিনতাই, গ্রেপ্তার ৭

চালক হত্যার পর ইজিবাইক ছিনতাই, গ্রেপ্তার ৭

প্রতীকী ছবি

গত ১৫ অক্টোবর রাত ১০টার দিকে কালীগঞ্জ উপজেলার ভাসাভাসি গ্রাম এলাকায় (পূর্বাচল ২৬ নম্বর সেক্টর) সাইফুলকে গলাকেটে হত্যার পর ইজিবাইক নিয়ে যায় ছিনতাইকারীরা। ওই ঘটনায় পরদিন কালীগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা করেন তার বড় শাহ আলম।

গাজীপুরের কালীগঞ্জে গলা কেটে চালককে হত্যার পর ইজিবাইক ছিনতাইয়ের ঘটনায় সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

র‌্যাব-১-এর পুলিশ সুপার শামিমা আক্তার রোববার গ্রেপ্তারের তথ্য নিশ্চিত করে জানান, শনিবার রাতে অভিযান চালিয়ে অটোরিকশাচালক হত্যার সঙ্গে প্রত্যক্ষভাবে জড়িত সাতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। ওই সময় হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরি ও ছিনতাই করা ইজিবাইকসহ অন্যান্য আলামত জব্দ করা হয়।

হত্যার শিকার ২৬ বছরের সাইফুল ইসলামের বাড়ি শেরপুরের শ্রীবর্দী থানায়। তিনি রাজধানীর উত্তরখান এলাকায় ভাড়া থেকে ইজিবাইক চালাতেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা কালীগঞ্জের উলুখোলা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) জাকির হোসেন জানান, গত ১৫ অক্টোবর রাত ১০টার দিকে কালীগঞ্জ উপজেলার ভাসাভাসি গ্রাম এলাকায় (পূর্বাচল ২৬ নম্বর সেক্টর) সাইফুলকে গলাকেটে হত্যার পর ইজিবাইক নিয়ে যায় ছিনতাইকারীরা। ওই ঘটনায় পরদিন কালীগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা করেন তার বড় শাহ আলম।

আরও পড়ুন:
রায়হান হত্যা: দায়মুক্তি পেতে স্ত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব
বিজিবি সদস্যকে ধাক্কা দিয়ে নদীতে লাফ, মরদেহ উদ্ধার
বাঁশঝাড়ে কিশোরের মরদেহ
নির্মাণাধীন ভবন থেকে ইট পড়ে শিশু নিহত
হিলি স্থলবন্দরে ভারতীয় ট্রাকচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

লরিচাপায় প্রাণ গেল দুই ভাইয়ের

লরিচাপায় প্রাণ গেল দুই ভাইয়ের

প্রতীকী ছবি

খোকসা থানার ওসি আশিকুর রহমান জানান, রাতুল খালা বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল। বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে মহাসড়ক পার হতে গিয়ে খালাতো ভাই সাহেদসহ লরির নিচে চাপা পড়ে সে।

কুষ্টিয়ার খোকসায় রাস্তা পার হওয়ার সময় রড বোঝাই লরি চাপায় দুই কিশোর নিহত হয়েছে।

কুষ্টিয়া-রাজবাড়ী মহাসড়কে হাশিমপুর এলাকায় রোববার বিকেলে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত দুই কিশোর হলো হাশিমপুরের সাহেদ ও কুমারখালী উপজেলার বরইচারা গ্রামের রাতুল। ১০ থেকে ১২ বছরের দুই কিশোর সম্পর্কে খালাতো ভাই।

খোকসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আশিকুর রহমান জানান, রাতুল খালা বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল। বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে মহাসড়ক পার হতে গিয়ে খালাতো ভাই সাহেদসহ লরির নিচে চাপা পড়ে সে। মাথায় আঘাত পেয়ে ঘটনাস্থলেই তাদের মৃত্যু হয়।

ওসি আরও জানান, খোঁজখবর নিয়ে মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হবে।

আরও পড়ুন:
রায়হান হত্যা: দায়মুক্তি পেতে স্ত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব
বিজিবি সদস্যকে ধাক্কা দিয়ে নদীতে লাফ, মরদেহ উদ্ধার
বাঁশঝাড়ে কিশোরের মরদেহ
নির্মাণাধীন ভবন থেকে ইট পড়ে শিশু নিহত
হিলি স্থলবন্দরে ভারতীয় ট্রাকচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

চৌমুহনীতে সাম্প্রদায়িক হামলা: আরও ৩ জনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

চৌমুহনীতে সাম্প্রদায়িক হামলা: আরও ৩ জনের স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি

জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) শহীদুল ইসলাম জানান, শনিবার বিকেলে জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম নবনীতা গুহের আদালতে রিপন আহাম্মেদ মাহীর, আরাফাত হোসেন আবির ও ইব্রাহিম খলিল ওরফে রাজিব ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের চৌমুহনীতে সাম্প্রদায়িক হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার ১৩ জনের মধ্যে আরও তিনজন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) শহীদুল ইসলাম রোববার দুপুরে নিউজবাংলাকে জানান, শনিবার বিকেলে জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম নবনীতা গুহের আদালতে রিপন আহাম্মেদ মাহীর, আরাফাত হোসেন আবির ও ইব্রাহিম খলিল ওরফে রাজিব ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার আবদুর রহিম সুজন জবানবন্দি দিয়েছিলেন।

এসপি জানান, কুমিল্লার ঘটনার জেরে চৌমুহনী বাজারের পূজামণ্ডপ, মন্দির, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ও হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের বাড়িতে হামলা, ভাঙচুর, লুটপাট, আগুন ও হত্যার ঘটনায় ক্লোজড সার্কিট টেলিভিশন (সিসিটিভি) ক্যামেরার ফুটেজ দেখে এখন পর্যন্ত ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

দুর্গাপূজায় সারা দেশে উৎসবমুখর পরিবেশের মধ্যে গত ১৩ অক্টোবর ভোরে কুমিল্লার নানুয়ার দিঘির পাড়ের একটি মণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ পাওয়ার পর ছড়িয়ে পড়ে সহিংসতা।

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ উপজেলার ছয়ানী ইউনিয়নে ১৪ অক্টোবর সন্ধ্যায় এবং পরদিন দুপুরে একই উপজেলার চৌমুহনী পৌর এলাকায় ১১টি পূজামণ্ডপে হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা। লুটপাট করা হয় মন্দিরের আসবাব, স্বর্ণালংকার, ভাঙচুর করা হয় প্রতিমা।

হামলায় প্রাণ হারান প্রান্ত চন্দ্র দাশ নামে এক যুবক, আতঙ্কে হৃদরোগে যতন সাহা নামে আরেকজনের মৃত্যু হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। তবে যতনের পরিবারের অভিযোগ, তিনিও হামলায় প্রাণ হারিয়েছেন।

নোয়াখালীতে সহিংসতার ঘটনায় এখন পর্যন্ত সাতটি মামলা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
রায়হান হত্যা: দায়মুক্তি পেতে স্ত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব
বিজিবি সদস্যকে ধাক্কা দিয়ে নদীতে লাফ, মরদেহ উদ্ধার
বাঁশঝাড়ে কিশোরের মরদেহ
নির্মাণাধীন ভবন থেকে ইট পড়ে শিশু নিহত
হিলি স্থলবন্দরে ভারতীয় ট্রাকচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

শিশু ধর্ষণ মামলায় কারাগারে প্রতিবেশী

শিশু ধর্ষণ মামলায় কারাগারে প্রতিবেশী

প্রতীকী ছবি

ফতুল্লা মডেল থানার ওসি রকিবুজ্জামান বলেন, ‘শিশুটির বাবা-মা স্থানীয় একটি পোশাক কারখানায় কাজ করেন। শনিবার সকালে শিশুটির বাবা-মা বাসা থেকে বের হন। সন্ধ্যায় তারা ফিরলে শিশুটি তাদের জানায়, বিকেলে ঘরের বাইরে খেলার সময় রিশাদুল কৌশলে তাকে নিজের ঘরে ডেকে নেন। সেখানে তাকে ধর্ষণ করেন।’

নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লায় শিশু ধর্ষণ মামলায় গ্রেপ্তার প্রতিবেশীকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

নারায়ণগঞ্জের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতের বিচারক ফাহমিদা খাতুন রোববার বিকেলে এ আদেশ দেন।

এর আগে শনিবার মধ্যরাতে ওই ব্যক্তিকে উপজেলার একটি এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয়।

কারাগারে পাঠানো ব্যক্তির নাম মো. রিশাদুল। তার বাড়ি রংপুরের হারাগাছ উপজেলার জুম্মাপাড়া এলাকায়। তিনি ফতুল্লার ওই এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় থাকতেন।

নিউজবাংলাকে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন আদালত পুলিশের পরিদর্শক মো. আসাদুজ্জামান।

ফতুল্লা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রকিবুজ্জামান বলেন, ‘শিশুটির বাবা-মা স্থানীয় একটি পোশাক কারখানায় কাজ করেন। গ্রেপ্তার রিশাদুল প্রতিবেশী হওয়ায় তাকে চাচা বলে ডাকত শিশুটি।

‘শনিবার সকালে শিশুটির বাবা-মা বাসা থেকে বের হন। সন্ধ্যায় তারা ফিরলে শিশুটি তাদের জানায়, বিকেলে ঘরের বাইরে খেলার সময় রিশাদুল কৌশলে তাকে নিজের ঘরে ডেকে নেন। সেখানে তাকে ধর্ষণ করেন।’

এ ঘটনায় শনিবার রাতেই থানায় মামলা করেন শিশুটির বাবা। মামলার পরপরই রিশাদুলকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানান ওসি রকিবুজ্জামান।

ওসি বলেন, ‘আমরা এ বিষয়ে তদন্ত করছি। শারীরিক পরীক্ষার জন্য শিশুটিকে রোববার বিকেলে নারায়ণগঞ্জ জেনারেল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
রায়হান হত্যা: দায়মুক্তি পেতে স্ত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব
বিজিবি সদস্যকে ধাক্কা দিয়ে নদীতে লাফ, মরদেহ উদ্ধার
বাঁশঝাড়ে কিশোরের মরদেহ
নির্মাণাধীন ভবন থেকে ইট পড়ে শিশু নিহত
হিলি স্থলবন্দরে ভারতীয় ট্রাকচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

সোনালী জুট মিলস ফের চালু

সোনালী জুট মিলস ফের চালু

খুলনা নগরীর মিরেরডাঙ্গার সোনালী জুট মিলস আবার চালু করা হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

মিল সূত্র জানায়, আর্থিক সংকট, পাটের দাম বৃদ্ধিসহ নানা জটিলতায় মালিকপক্ষ মিলটি বন্ধ করে দেয়। পরে বেসরকারি পাট, সুতা, বস্ত্রকল শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশন, মিলের অ্যাডহক কমিটি এবং খুলনা বিভাগীয় শ্রম পরিচালক মিজানুর রহমান এটি পুনরায় চালুর উদ্যোগ নেন।

খুলনা নগরীর সোনালী জুট মিলস আবার চালু করা হয়েছে। ১১ মাস বন্ধ থাকার পর শনিবার মিলটি আংশিক চালু করা হয়।

নগরীর মিরেরডাঙ্গা শিল্প এলাকায় ব্যক্তিমালিকানার মিলটি গেল বছরের ২৮ নভেম্বর বন্ধ করা হয়েছিল।

মিল সূত্র জানায়, আর্থিক সংকট, পাটের দাম বৃদ্ধিসহ নানা জটিলতায় মালিকপক্ষ মিলটি বন্ধ করে দেয়। পরে বেসরকারি পাট, সুতা , বস্ত্রকল শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশন, মিলের অ্যাডহক কমিটি এবং খুলনা বিভাগীয় শ্রম পরিচালক মিজানুর রহমান এটি পুনরায় চালুর উদ্যোগ নেন।

মেসার্স জামান ট্রেডিং লিজ হিসেবে মিলটি চালানোর আগ্রহ প্রকাশ করলে শনিবার থেকে এটা পুনরায় চালু হয়।

রোববার সকাল ১০টার দিকে বেসরকারি পাট, সুতা, বস্ত্রকল শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশন জরুরি মতবিনিময় সভা হয়। সোনালী জুট মিলস ওয়ার্কার্স ইউনিয়ন ফেডারেশনের সভাপতি শেখ আমজাদ হোসেন এতে সভাপতিত্ব করেন। সংগঠনের প্রচার সম্পাদক সাইফুল্লাহ তারেকের পরিচালনায় সভা হয়।

বক্তব্য দেন বেসরকারি পাট, সুতা, বস্ত্রকল শ্রমিক-কর্মচারী ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ও মহসেন জুট মিলস ওয়ার্কার্স ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম রসুল খান, সংগঠনের সহসভাপতি ও আফিল জুট মিলস মজদুর ইউনিয়নের নেতা কাবিল হোসেন ও নিজামউদ্দিন, মহসেন জুট মিলসের শ্রমিকনেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা আসহাফ উদ্দীন, মাহাতাব উদ্দীনসহ অনেকে।

আরও পড়ুন:
রায়হান হত্যা: দায়মুক্তি পেতে স্ত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব
বিজিবি সদস্যকে ধাক্কা দিয়ে নদীতে লাফ, মরদেহ উদ্ধার
বাঁশঝাড়ে কিশোরের মরদেহ
নির্মাণাধীন ভবন থেকে ইট পড়ে শিশু নিহত
হিলি স্থলবন্দরে ভারতীয় ট্রাকচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

নোংরা পরিবেশে খাবার-মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ: ৬ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

নোংরা পরিবেশে খাবার-মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ: ৬ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা

নোংরা পরিবেশে খাদ্য তৈরি এবং মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বিক্রির দায়ে খুলনার ছয় প্রতিষ্ঠানকে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর

অভিযানে ফুলতলার বেলতলার রবি চানাচুর, মিল্লাত বেকারি, সোনালী মেডিক্যাল হল, মেসার্স মিলন মেডিক্যাল, স্বর্ণা গিফট ও চম্পা চানাচুর ফ্যাক্টরির কাছ থেকে জরিমানার ৭০ হাজার টাকা আদায় করা হয়েছে।

নোংরা পরিবেশে খাদ্য তৈরি এবং মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বিক্রির দায়ে খুলনার ছয় প্রতিষ্ঠানকে ৭০ হাজার টাকা জরিমানা করেছে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

রোববার দুপুরে ফুলতলা উপজেলায় অভিযান পরিচালনা করেন ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা।

ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের খুলনা বিভাগীয় উপপরিচালক ইব্রাহীম হোসেন এবং জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক শিকদার শাহীনুর আলম অভিযানে নেতৃত্ব দেন।

অভিযানে ফুলতলার বেলতলার রবি চানাচুর, মিল্লাত বেকারি, সোনালী মেডিক্যাল হল, মেসার্স মিলন মেডিক্যাল, স্বর্ণা গিফট ও চম্পা চানাচুর ফ্যাক্টরির কাছ থেকে জরিমানার ৭০ হাজার টাকা আদায় করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
রায়হান হত্যা: দায়মুক্তি পেতে স্ত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব
বিজিবি সদস্যকে ধাক্কা দিয়ে নদীতে লাফ, মরদেহ উদ্ধার
বাঁশঝাড়ে কিশোরের মরদেহ
নির্মাণাধীন ভবন থেকে ইট পড়ে শিশু নিহত
হিলি স্থলবন্দরে ভারতীয় ট্রাকচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন

দুধের শিশু সঙ্গে নেয়ায় ক্লাস থেকে বহিষ্কার

দুধের শিশু সঙ্গে নেয়ায় ক্লাস থেকে বহিষ্কার

নাটোরের রাণী ভবানী সরকারি মহিলা কলেজ। ছবি: নিউজবাংলা

ওই ঘটনা নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেয়া এক ছাত্রী অভিযোগ করেন, শিশুদের নিয়ে ওরিয়েন্টেশন ক্লাসে অংশ নেয়ায় অধ্যক্ষ মঞ্জুরা বেগম ও সহকারী অধ্যাপক তাসলিমা তিন ছাত্রীকে বের করে দেন। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত অপেক্ষা করলেও তাদের আর অনুষ্ঠানে ঢুকতে দেয়া হয়নি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ছাত্রীর সন্তানকে কোলে নিয়ে শিক্ষকের ক্লাস করার ছবি ভাইরাল হওয়ার পর প্রশংসা বাণীর মধ্যে উল্টো একটি ঘটনা ঘটল নাটোরে।

জেলার রাণী ভবানী সরকারি মহিলা কলেজের ওরিয়েন্টেশন ক্লাসে শিশু সন্তান নিয়ে যাওয়ায় তিন ছাত্রীকে বের করে দেয়ার অভিযোগ উঠেছে অধ্যক্ষ ও এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে।

অভিযোগ, বৃহস্পতিবার কলেজের ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতক শ্রেণির ওরিয়েন্টেশন ক্লাসে নিজেদের সন্তান নিয়ে যান ওই তিন ছাত্রী। শিশু নিয়ে যাওয়ায় পরে অনুষ্ঠান থেকে তাদের বের করে দেন ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ও অধ্যক্ষ মঞ্জুরা বেগম এবং একই বিভাগের সহকারী অধ্যাপক তাসলিমা খাতুন।

রোববার এ নিয়ে দুই ছাত্রী ফেসবুকে পোস্ট দিলে বিষয়টি জানাজানি হয়। দুই শিক্ষকের ছবিসহ ‘এমন শিক্ষকের হাত ধরে কীভাবে এগোবে নারী শিক্ষা’ শিরোনামে দেয়া ওই পোস্টের পর শুরু হয়েছে প্রতিবাদ ও নিন্দা। এ ছাড়া শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের মধ্যেও উত্তেজনা বিরাজ করছে।

নিজেদের বিরুদ্ধে অভিযোগ অবশ্য অস্বীকার করেছেন দুই শিক্ষক।

সহকারী অধ্যাপক তাসলিমার দাবি, শিশুরা কান্না করায় অনুষ্ঠানে বিঘ্ন হচ্ছিল। এ জন্য তিনি তাদের বাইরে ঘুরে আসতে বলেছেন। আর অধ্যক্ষ শুনিয়েছেন ষড়যন্ত্রতত্ত্বের কথা। তার দাবি, এমন কিছু তিনি করেননি। তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হচ্ছে।

দুধের শিশু সঙ্গে নেয়ায় ক্লাস থেকে বহিষ্কার

ওই ঘটনা নিয়ে ফেসবুকে পোস্ট দেয়া এক ছাত্রী অভিযোগ করেন, শিশুদের নিয়ে ওরিয়েন্টেশন ক্লাসে অংশ নেয়ায় অধ্যক্ষ মঞ্জুরা বেগম ও সহকারী অধ্যাপক তাসলিমা তিন ছাত্রীকে বের করে দেন। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত অপেক্ষা করলেও তাদের আর অনুষ্ঠানে ঢুকতে দেয়া হয়নি।

এ বিষয়ে সহকারী অধ্যাপক তাসলিমা বলেন, ‘ওই অনুষ্ঠানে খুবই ছোট্ট বাচ্চারা কান্নাকাটি করায় অনুষ্ঠানে বিঘ্ন হচ্ছিল। তাই আমি তাদের সেখান থেকে বের হয়ে একটু ঘুরে আসতে বলেছি।

‘তাদের সাথে ছবিও উঠেছি। বের করে দেয়া ঠিক না। আমি তাদের অনুরোধ করেছি মাত্র। তবে এখনও পোস্টটি দেখিনি, তাই এই বিষয়ে কিছু বলতে পারছি না।’

অধ্যক্ষ মঞ্জুরা বেগম বলেন, ‘এমন কোনোই ঘটনা ঘটেনি। আমি অল্প দিন হলো কলেজটিতে যোগদান করেছি। একটি মহল আমাকে নিয়ে ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে।

‘আপনি নাম ঠিকানা দেন। তাদের সাথে কথা বলি। তারা যে ভাষায় ফেসবুকে পোস্ট দিয়েছে তা কোনো শিক্ষার্থীর ভাষা হতে পারে না। কারো ইন্ধনে ওই কজন শিক্ষার্থী ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছে। আপনারা ষড়যন্ত্রের কারণ খুঁজে বের করেন।’

নাটোরের জেলা প্রশাসক শামীম আহমেদ জানান, বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জেনেছেন। তিন শিক্ষার্থীকে যোগাযোগ করতে বলেছেন। তাদের কাছ থেকে ঘটনা শুনে বিষয়টি খতিয়ে দেখবেন।

আরও পড়ুন: বাল্যবিয়ের শিকার ছাত্রীর সন্তান কোলে শিক্ষকের পাঠদান

চলতি মাসেই ৩ তারিখ শিশুসহ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার এক শিক্ষকের ছবি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়।

ছবিটিতে দেখা যায়, দুই থেকে তিন মাস বয়সী শিশুকে নিয়ে ক্লাস নিচ্ছেন এক শিক্ষক। দেখে মনে হচ্ছে নিজ সন্তানকে এমন পরম যত্নে আগলে পাঠদান করছেন তিনি।

তবে মেয়ে শিশুটি তার নিজের নয় বরং করোনার মধ্যে বাল্যবিয়ের শিকার এক ছাত্রীর। জেলার চিনাইর আঞ্জুমান আরা উচ্চ বিদ্যালয়ের পঙ্কজ মধু নামের ওই শিক্ষক তাকে কোলে নিয়েই ক্লাস নিচ্ছিলেন।

ওই ছবি ভাইরাল হওয়ার পর অনেকেই শিক্ষক পঙ্কজের প্রশংসা করেন। নাটোরের ঘটনায়ও উঠে এসেছে তার নাম।

এ ঘটনায় দেয়া পোস্টে শিক্ষক পঙ্কজের ছবি দিয়ে অনেকেই পার্থক্যের বিষয়টি নির্দেশ করেছেন।

আরও পড়ুন:
রায়হান হত্যা: দায়মুক্তি পেতে স্ত্রীকে বিয়ের প্রস্তাব
বিজিবি সদস্যকে ধাক্কা দিয়ে নদীতে লাফ, মরদেহ উদ্ধার
বাঁশঝাড়ে কিশোরের মরদেহ
নির্মাণাধীন ভবন থেকে ইট পড়ে শিশু নিহত
হিলি স্থলবন্দরে ভারতীয় ট্রাকচালকের মৃত্যু

শেয়ার করুন