ফ্যামিলিটেক্সে উৎপাদন চলছে

ফ্যামিলিটেক্সে উৎপাদন চলছে

চট্টগ্রাম রপ্তানি প্রক্রিয়াজাতকরণ অঞ্চলে ফ্যামিলিটেক্সের কারখানায় উৎপাদন কার্যক্রম পরিদর্শনে নতুন পরিচালনা পর্ষদ । ছবি: নিউজবাংলা

গত ফেব্রুয়ারিতে বোর্ড পুর্নগঠন করা হয়। তারপর অনেকবার আলোচনায় আসে কোম্পানিটি আর চালু করা সম্ভব হবে না। বিএসইসি চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম এমনও বলেন যে, তারা কারখানা মালিকদের বিরুদ্ধে মামলা করবেন। পরে কারখানা বিক্রি করে দেয়ার পরিকল্পনার কথা বলেন, কিন্তু সেপ্টেম্বরের শুরুতে পুনর্গঠন করা বোর্ডের সদস্যরা পরিদর্শন করেন ফ্যামিলিটেক্সের কারখানা। সেখান থেকে ফিরে তারা জানালেন, কোম্পানির সক্ষমতার প্রায় ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ উৎপাদনে। আর কোম্পানিটি পুরোদমে চালু করতে আগের এক পরিচালককে সহযোগিতা করার সুপারিশও করেছে নতুন পর্ষদ।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বস্ত্র খাতের কোম্পানি ফ্যামিলিটেক্সের উৎপাদন বন্ধ বলে এতদিন যে তথ্য ছিল, তার বিপরীত চিত্র দেখতে পেয়েছে পুনর্গঠিত পরিচালনা পর্ষদ।

কোম্পানিটির সিংহভাগ পরিচালকের হাতে থাকা শেয়ার ঘোষণা ছাড়া বিক্রি করে চলে গেলেও একজন পরিচালক তার মতো করে উৎপাদর চালু রেখেছেন। এই কারখানায় উৎপাদিত পণ্য বিদেশে রপ্তানিও হচ্ছে।

তবে আর্থিক সংকটে পুরোপুরি নয়, সক্ষমতার এক-তৃতীয়াংশ উৎপাদন ক্ষমতা ব্যবহার করছেন তিনি। তিনি কোম্পানিটিকে পুরোদমে উৎপাদনে আনতেও আগ্রহী।

বন্ধ জেনে কোম্পানিটির পর্ষদ ভেঙে দেয়ার পর নতুন যারা দায়িত্ব পেয়েছেন, তারা চট্টগ্রাম রপ্তানি প্রক্রিয়াজাতকরণ অঞ্চলে কারখানা পরিদর্শন করে এই চিত্র দেখতে পেয়ে অবাক হয়েছেন।

এরই মধ্যে নতুন পর্ষদ কোম্পানিটি আগের পরিচালককে রেখেই চালু করার সুপারিশ করে বিএসইসিকে প্রতিবেদন দিয়েছে। কোম্পানিটির যে সম্পদ আছে, তার বিপরীতে সহজেই ঋণ নেয়া যেতে পারে বলে তারা মনে করছে।

মাস কয়েক আগে ব্যাংকের সঙ্গে জটিলতায় কোম্পানিটির শ্রমিকদের বেতন বকেয়া পড়লেও সেই সমস্যারও সমাধান হয়েছে। কোম্পানিটি যিনি চালু রেখেছেন, তিনি আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশেও রাজি হয়েছেন।

পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি এই কোম্পানিটিকে অন্য কোনো কোম্পানির সঙ্গে একীভূত করা এমনকি বিক্রি করে দেয়ার বিষয়েও ভাবছিল। তবে নতুন পরিচালনা পর্ষদ সুপারিশ করেছে, আগের মালিককেই কোম্পানিটির দায়িত্বে রাখার। তারা বলছে, পোশাক কারখানা পরিচালনায় তিনি বেশ দক্ষ।

কোম্পানিটি ৯ বছর আগে তালিকাভুক্ত হওয়ার এক বছর পর ১০০ শতাংশ বোনাস শেয়ার দেয় চমক দেখালেও পরে হতাশ করে বিনিয়োগকারীদেরকে। টানা লোকসানের পাশাপাশি উদ্যোক্তা-পরিচালকদের ঘোষণা না দিয়ে শেয়ার বিক্রি করে করে দেয়ার ঘটনায় ক্ষুব্ধ হয় বিনিয়োগকারীরা।

এই অভিযোগ ওঠার পর বিএসইসি তদন্ত কমিটি গঠন করে পরিচালকদেরকে জরিমানাও করে, কিন্তু জরিমানা পরিশোধ করা হয়নি। বরং সে সময় জানা গিয়েছিল, মালিকপক্ষ কারখানা বন্ধ করে লাপাত্তা।

বিএসইসি বন্ধ ও লোকসানি ১২টির বেশি কোম্পানিতে প্রাণ ফেরাতে যে উদ্যোগ নিয়েছে, তার মধ্যে একটি এই ফ্যামিলিটেক্স।

গত ফেব্রুয়ারিতে বোর্ড পুনর্গঠন করা হয়। তারপর অনেকবার আলোচনায় আসে কোম্পানিটি আর চালু করা সম্ভব হবে না। বিএসইসি চেয়ারম্যান শিবলী রুবাইয়াত-উল ইসলাম এমনও বলেন যে, তারা কারখানা মালিকদের বিরুদ্ধে মামলা করবেন। পরে কারখানা বিক্রি করে দেয়ার পরিকল্পনার কথা বলেন।

কিন্তু সেপ্টেম্বরের শুরুতে পুনর্গঠন করা বোর্ডের সদস্যরা পরিদর্শন করেন ফ্যামিলিটেক্সের কারখানা। সেখান থেকে ফিরে তারা জানালেন, কোম্পানির সক্ষমতার প্রায় ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ উৎপাদনে।

মালিকানায় থাকা মেরাজ মোস্তফা কায়সার কোম্পানিটির তার তত্ত্বাবধানে চালু রাখতে চান বলে জানিয়েছেন নতুন বোর্ড সদস্যদের। কোম্পানি চালু রাখার জন্য প্রয়োজনীয় চলতি মূলধনের ব্যবস্থা করে দিলে তিনি আগের মতোই উৎপাদন শুরু করতে পারবেন বলে জানিয়েছেন।

পুনর্গঠিত পর্ষদের ড. মো. ফরজ আলী নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বিএসইসির পক্ষ থেকে আমাদের ৩০ সেপ্টেম্বরে মধ্যে কোম্পানিটি সম্পর্কে রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছিল। আমরা তা জমা দিয়েছি। সেখানে বিস্তারিত উল্লেখ করেছি।

‘আমরা কোম্পানিটি পরিদর্শন শেষে যা দেখেছি তাই বিএসইসিকে জানিয়েছি। পাশাপাশি কোম্পানিটি চালু রাখতে হলে কী কী কমপ্লায়েন্স বাস্তবায়ন করতে হবে সে বিষয়গুলোকেও অবহিত করা হয়েছে।’

ফ্যামিলিটেক্সে উৎপাদন চলছে
ফ্যামিলিটেক্সের পণ্য এখন বাইরেও রপ্তানি হচ্ছে। ছবি: নিউজবাংলা

আগের মালিককে দিয়েই কোম্পানিটিকে পুনরুজ্জীবিত করার পক্ষে ড. ফরজ আলী। তিনি বলেন, ‘এখন যিনি কোম্পানিটি পরিচালনা করছেন, তিনি চালালেও কোম্পানির কমপ্লায়েন্স বাস্তবায়ন করতে হবে, অন্য কাউকে দিয়ে চালালেও তা বাস্তবায়ন করতে হবে। ফলে যিনি বর্তমানে এটি পরিচালনা করছেন তাতে দিয়ে করানোই ভালো। কারণ, তার এ খাতের ভালো অভিজ্ঞতা আছে।’

ফ্যামিলিটেক্সের নতুন পর্ষদের সদস্য ও কারখানা পরিদর্শনে যাওয়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মার্কেটিং বিভাগের অধ্যাপক ড. সমীর কুমার শীল নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যেভাবে কোম্পানিট বন্ধ বলা হচ্ছে আসলে তা নয়। কোম্পানি বোর্ড পুনর্গঠন করার আগ থেকেই কোম্পানি এভাবেই চলছে।’

তিনি বলেন, ‘পরিদর্শনে আমরা কোম্পানিটিতে প্রায় তিন থেকে চারশ শ্রমিককে কাজ করতে দেখেছি। বিশ্বের অনেক বড় বড় কোম্পানিতে তাদের পোশাক রপ্তানি হচ্ছে সেটিও তারা নিশ্চিত করেছে।

‘কোম্পানিটির আগের যারা পরিচালক ছিল তারা তাদের শেয়ার বিক্রি করে চলে গেলেও বর্তমানে যে পরিচালক আছেন তিনি এটি ছেড়ে যাবেন না বলে জানিয়েছেন। তবে তার এখন কোম্পানিটি চালু করতে মূলধন প্রয়োজন।’

ব্যাংকে কোম্পানির ৭০ কোটি টাকার বেশি ঋণ আছে। তবে কোম্পানিটির যে সম্পদ আছে সেটির মূল্য ১২০ কোটি টাকার বেশি। ফলে নতুন করে ঋণ নিয়ে কোম্পানি চালু করা কঠিন হবে না বলেই মনে করছেন এই অধ্যাপক।

তিনি বলেন, ‘নতুন বোর্ড গঠন করার পর কোম্পানিটি তার ব্যাংকের লেনদেন জটিলতা তৈরি হয়েছিল। ফলে কয়েক মাসের বেতনও বকেয়া পড়ে যায়। তবে আমরা পরিদর্শনে যাওয়ার পর এ বিষয়ে সমাধান করে দিয়েছে।

‘নতুন পুনর্গঠিত বোর্ডের চেয়ারম্যান ও কোম্পানির পরিচালকের যৌথ স্বাক্ষরে ব্যাংকের হিসাব পরিচালিত হবে। ফলে এখন আর ব্যাংকের সঙ্গে লেনদেনের যে জটিলতা ছিল সেটি এখন নেই। এবং তিনি তার কর্মচারীদের বেতনও পরিশোধ করে দিয়েছেন।’

কোম্পানিটি আবার পুরোদমে চালু হওয়ার সম্ভাবনা কতটুকু- এমন প্রশ্নে সম্পর্কে তিনি বলেন, ‘আর্থিক সহযোগিতা প্রয়োজন। কোম্পানিটিকে তার পূর্বের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করার কথা বলা হয়েছে, সেটিও তারা দেবেন বলে জানিয়েছেন।’

এ বিষয়ে বিএসইসি নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র রেজাউল করিম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ বিষয়ে আমার কাছে কোনো তথ্য নেই। আর তারা প্রতিবেদন দিয়ে থাকলেও সেটি অন্য কোনো বিভাগে দিয়েছে। এ বিষয়ে কমিশন যখন সিদ্ধান্ত নেবে, তখন জানানো হবে।’

ফ্যামিলিটেক্সের আদ্যোপান্ত

২০১৩ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয় কোম্পানিটি। ১০ টাকা মূল্যমানের সাড়ে তিন কোটি শেয়ার ছেড়ে তারা সংগ্রহ করে ৩৫ কোটি টাকা।

তালিকাভুক্তির পর ২০১২ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত অর্থবছরের আর্থিক হিসাব পর্যালোচনা করে কোনো লভ্যাংশ দেয়নি। তবে ২০১৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর সমাপ্ত অর্থবছরের জন্য ১০০ শতাংশ বোনাস লভ্যাংশ ঘোষণা করে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

ওই বছর কোম্পানির শেয়ারপ্রতি আয় দেখানো হয় ৭ টাকা ২৬ পয়সা আর শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য হয় ২১ টাকা ৭২ পয়সা। এই লভ্যাংশ ঘোষণার পরদিন ১ এপ্রিল কোম্পানিটির শেয়ার দর দাঁড়ায় ৬২ টাকা, যদিও একপর্যায়ে দাম ৭৪ টাকা ৮০ পয়সায় দাঁড়িয়েছিল।

বিপুল পরিমাণ বোনাস শেয়ার দেয়ার পর থেকেই ফ্যামিলিটেক্সের আয় কমতে থাকে। ২০১৫ থেকে ২০১৬ সালের জুন পর্যন্ত সমাপ্ত অর্থবছরে তারা সবশেষ মুনাফা করেছিল। তখন শেয়ারপ্রতি আয় হয় ৮২ পয়সা। এর পরের চার বছর ধরে লোকসান দিচ্ছে তারা।

২০১৭ সালে শেয়ারপ্রতি লোকসান হয় সাড়ে ৪ পয়সার মতো। পরের বছর লোকসান হয় ৭ পয়সা, ২০১৯ সালে লোকসান হয় ৮ পয়সা। আর ২০২০ সালে লোকসান হয় ১৫ পয়সা।

২০১৩ সালে ১০০ শতাংশ বোনাস শেয়ার লভ্যাংশ হিসেবে দেয়ার পরের বছর তারা দেয় আরও ১০ শতাংশ বোনাস। এর পরের তিন বছর দেয় ৫ শতাংশ করে। কিন্তু গত দুই বছর কোনো লভ্যাংশই দেয়া হয়নি।

অথচ পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার আগে কোম্পানির আয় ক্রমেই বাড়ছিল। তালিকাভুক্তির আগে তিন বছরের আর্থিক প্রতিবেদন জমা দিতে হয় বিএসইসিতে।

সেখানে দেখা গিয়েছিল ২০১১ ও ২০১২ সালে কোম্পানিটির মুনাফা বেড়েছিল চার গুণের বেশি। আর তালিকাভুক্ত হওয়ার বছরে মুনাফা বাড়ে আরও ৭৬ শতাংশ।

গত বছর কোম্পানিটি শেয়ারপ্রতি ১৫ পয়সা করে লোকসান দেয়। চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই প্রান্তিক অর্থাৎ ছয় মাসে লোকসান দিয়েছে ১৩ পয়সার কিছু বেশি।

এর মধ্যে উদ্যোক্তা পরিচালকরা আরেকটি আইনবিরুদ্ধ কাজ করেন। পুঁজিবাজারে ঘোষণা না দিয়েই উদ্যোক্তা-পরিচালকরা তাদের হাতে থাকা সিংহভাগ শেয়ার বিক্রি করে দেন।

এই বিষয়টি তদন্তে ডিসেম্বরের শেষে একটি কমিটি করে বিএসইসি। তারা কোনো সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পেরেছে কি না, সেটি এখনও জানা যায়নি। আর এ জন্য পরিচালকদের তেমন কোনো শাস্তিও পেতে হয়নি।

কোম্পানিটির ৩৫ কোটি ৪০ লাখ শেয়ারের মধ্যে এখন মাত্র ৪.০২ শতাংশের মালিক কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালকরা। অথচ বিএসইসির নির্দেশনা অনুযায়ী অন্তত ৩০ শতাংশ শেয়ার ধরে রাখতে হবে মালিকপক্ষ।

এই কোম্পানির ৭৭.৫৭ শতাংশ শেয়ার সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে। ক্রমাগত লোকসান দিতে থাকা কোম্পানির শেয়ার দরও একেবারে তলানিতে। এক পর্যায়ে দাম ২ টাকা ৪০ পয়সায় নেমে আসে। তবে বোর্ড পুনর্গঠনের পর গত আগস্টে দাম বেড়ে এক পর্যায়ে ৬ টাকা ৮০ পয়সা পর্যন্ত পৌঁছে। তবে গত এক মাস ধরে আবার কমছে। রোববার দাম দাঁড়িয়েছে ৫ টাকা ২০ পয়সা।

আরও পড়ুন:
দুটি কোম্পানির শেয়ার পাবেন কর্মীরাও
বিডি ফুড: ইপিএস না বাড়লে লভ্যাংশ পাবেন না উদ্যোক্তারা
লভ্যাংশের নামে প্রতারণা, মামলা হচ্ছে সুহৃদ পরিচালকদের নামে
দ্বিগুণ কোম্পানির দরপতনেও বাড়ল সূচক
এক বছরে দ্বিগুণ বেড়ে পুঁজিবাজার এখন জিডিপির ২০ শতাংশ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

তৃতীয় প্রান্তিকে ‘হোঁচটেও’ সিটি ব্যাংকের আয়ে প্রবৃদ্ধি

তৃতীয় প্রান্তিকে ‘হোঁচটেও’ সিটি ব্যাংকের আয়ে প্রবৃদ্ধি

রাজধানীতে সিটি ব্যাংকের কেন্দ্রীয় কার্যালয়

অর্ধবার্ষিকে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় ছিল ২ টাকা ৬ পয়সা। আগের বছর এই আয় ছিল ১ টাকা ছিল। অর্থাৎ আয় বাড়ে ১০৬ শতাংশ। তৃতীয় প্রান্তিকে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৯০ পয়সা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ১ টাকা ৮৯ পয়সা।

প্রথম দুই প্রান্তিকের চমক তৃতীয় প্রান্তিকে ধরে রাখতে না পারলেও তিন প্রান্তিক মিলিয়ে আয়ে প্রবৃদ্ধি ধরে রাখল সিটি ব্যাংক।

গত জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকটি শেয়ার প্রতি আয় করেছে ২ টাকা ৯৭ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে এই আয় ছিল ২ টাকা ৮৯ পয়সা।

অর্থাৎ আয় বেড়েছে ২.৯৭ শতাংশ।

নিঃসন্দেহে ভালো। তবে দ্বিতীয় প্রান্তিক জুন পর্যন্ত হিসাব বিবেচনায় নিলে বিনিয়োগকারীরা কিছুটা হতাশ হতে পারেন।

অর্ধবার্ষিকে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় ছিল ২ টাকা ৬ পয়সা। আগের বছর এই আয় ছিল ১ টাকা ছিল। অর্থাৎ আয় বাড়ে ১০৬ শতাংশ।

তৃতীয় প্রান্তিকে আয় খুব খারাপ, এমনটা বলার সুযোগ নেই। এই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৯০ পয়সা। তবে আগের বছরের একই সময়ের হিসাব বিবেচনায় নিলে হতাশ হতেও পারে।

গত বছরের জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকটি শেয়ার প্রতি আয় করেছিল ১ টাকা ৮৯ পয়সা। অর্থাৎ জুন পর্যন্ত শতভাগ আয় বাড়ানো ব্যাংকটি তৃতীয় প্রান্তিকে এসে আয় করেছে আগের বছরের ৫০ শতাংশ।

বৃহস্পতিবার ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের বৈঠকে এই অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুমোদনের পর প্রকাশ করা হয়।

প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যাংকটির সম্পদমূল্যও বেড়েছে। গত ৩০ সেপ্টেম্বর শেয়ার প্রতি সম্পদ ছিল ৩০ টাকা ১১ পয়সা। গত ৩১ ডিসেম্বর এই সম্পদ ছিল ২৭ টাকা ৬৫ পয়সা।

সম্পদমূল্যের চেয়ে কম দামে লেনদেন হওয়া ব্যাংকটি ২০২০ সালে শেয়ার প্রতি ৪ টাকা ২৯ পয়সা আয় করে ১ টাকা ৭৫ পয়সা নগদ ও ৫ শতাংশ, অর্থাৎ প্রতি ২০টি শেয়ারে একটি বোনাস শেয়ার দিয়েছিল।

প্রান্তিক প্রকাশের দিন সিটি ব্যাংকের শেয়ারদর ছিল ২৮ টাকা ২০ পয়সা।

গত এক বছরে ব্যাংকটির শেয়ারদর ২১ টাকা ৭০ পয়সা থেকে ৩৩ টাকা ৬০ পয়সা পর্যন্ত উঠানামা করেছে।

করোনার মধ্যেও গত বছর ব্যাংক খাত অভাবনীয় আয় করে আকর্ষণীয় লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। চলতি বছর অর্ধবার্ষিকে বেশিরভাগ বাংকই আয় আগের বছরের চেয়ে বাড়াতে পেরেছে। তৃতীয় প্রান্তিকেও একই প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।

এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট চারটি ব্যাংকের তৃতীয় প্রান্তিকের আয় প্রকাশ পেল। এর মধ্যে শুরু থেকেই লোকসানে থাকা আইসিবি ইসলামী ব্যাংক এবারও লোকসানের বৃ্ত্তেই আছে। শেয়ারদরে গত এক বছরে উল্লম্ফন হলেও কোম্পানিটি লোকসান কমাতে পারেনি, উল্টো বেড়েছে।

অন্য ব্যাংকগুলোর মধ্যে এসসিসি ব্যাংক ২৩ শতাংশ এবং ইসলামী ব্যাংক ১৬ শতাংশ আয় বাড়াতে পেরেছে।

আরও পড়ুন:
দুটি কোম্পানির শেয়ার পাবেন কর্মীরাও
বিডি ফুড: ইপিএস না বাড়লে লভ্যাংশ পাবেন না উদ্যোক্তারা
লভ্যাংশের নামে প্রতারণা, মামলা হচ্ছে সুহৃদ পরিচালকদের নামে
দ্বিগুণ কোম্পানির দরপতনেও বাড়ল সূচক
এক বছরে দ্বিগুণ বেড়ে পুঁজিবাজার এখন জিডিপির ২০ শতাংশ

শেয়ার করুন

আয় বাড়াল ইসলামী ব্যাংকও

আয় বাড়াল ইসলামী ব্যাংকও

গত করোনার বছরে আগের বছরের চেয়ে বেশি আয় করা ব্যাংকগুলো এবারও জুন পর্যন্ত দ্বিতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত আয়ে চমক দেখায়। দ্বিগুণ, তিন গুণ এমনকি তার চেয়ে বেশি আয় করা ব্যাংকগুলো এখন তৃতীয় প্রান্তিকের হিসাব প্রকাশ করছে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ইসলামী ব্যাংকও আগের বছরের চেয়ে চলতি বছর বেশি আয় করতে পারছে।

গত জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৯ মাসে কোম্পানিটি শেয়ারপ্রতি আয় করতে পেরেছে ২ টাকা ৬৭ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে আয় ছিল (ইপিএস) ২ টাকা ৩০পয়সা। আয় বেড়েছে ৩৭ পয়সা বা ১৬ শতাংশ।

এর আগে এনসিসি ব্যাংকের আর্থিক প্রতিবেদনেও আয় বাড়ার বিষয়টি উঠে আসে। এই ব্যাংকটি চলতি বছর তিন প্রান্তিক মিলিয়ে আগের বছর একই সময়ের তুলনায় ২৩ শতাংশ বেশি আয় করেছে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলো নিয়ে নানা রকম আলোচনা থাকলেও বেশির ভাগ কোম্পানির আয় এবং লভ্যাংশ প্রতিবছরই চমকপ্রদ।

গত করোনার বছরে আগের বছরের চেয়ে বেশি আয় করা ব্যাংকগুলো এবারও জুন পর্যন্ত দ্বিতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত আয়ে চমক দেখায়। দ্বিগুণ, তিন গুণ এমনকি তার চেয়ে বেশি আয় করা ব্যাংকগুলো এখন তৃতীয় প্রান্তিকের হিসাব প্রকাশ করছে।

ইসলামী ব্যাংক জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিন মাসে শেয়ারপ্রতি আয় করেছে ৫৯ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে এই আয় ছিল ৩৬ পয়সা।

আয়ের পাশাপাশি কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্যও বাড়ছে। ৩০ সেপ্টেম্বর শেয়ারপ্রতি সম্পদ হয়েছে ৪০ টাকা ৫৯ পয়সা। গত ৩০ ডিসেম্বরে এই সম্পদ ছিল ৩৮ টাকা ৮৯ পয়সা।

কোম্পানিটির শেয়ারদর বর্তমানে তার সম্পদের চেয়ে কম। আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশের দিন ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩০ টাকায়।

বেসরকারি ব্যাংকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আমানত ও ঋণদানকারী এই ব্যাংকটির শেয়ারমূল্য গত এক বছর ধরেই স্থিতিশীল। এই সময়ে শেয়ারের সর্বনিম্ন মূল্য ছিল ২৫ টাকা ৪০ পয়সা, আর সর্বোচ্চ মূল্য ছিল ৩২ টাকা।

কোম্পানিটি প্রতিবছরই বেশ ভালো আয় করলেও লভ্যাংশের ইতিহাস খুব একটি ভালো নয়। ২০১৬ সাল থেকে টানা ৫ বছর শেয়ারপ্রতি ১ টাকা করে লভ্যাংশ পেয়েছেন বিনিয়োগকারীরা।

আরও পড়ুন:
দুটি কোম্পানির শেয়ার পাবেন কর্মীরাও
বিডি ফুড: ইপিএস না বাড়লে লভ্যাংশ পাবেন না উদ্যোক্তারা
লভ্যাংশের নামে প্রতারণা, মামলা হচ্ছে সুহৃদ পরিচালকদের নামে
দ্বিগুণ কোম্পানির দরপতনেও বাড়ল সূচক
এক বছরে দ্বিগুণ বেড়ে পুঁজিবাজার এখন জিডিপির ২০ শতাংশ

শেয়ার করুন

সাবমেরিন ক্যাবলে আয়ে চমকের পর সর্বোচ্চ লভ্যাংশ

সাবমেরিন ক্যাবলে আয়ে চমকের পর সর্বোচ্চ লভ্যাংশ

২০১২ সালে তালিকাভুক্তির বছরে শেয়ার প্রতি ২ টাকা লভ্যাংশই এর আগে কোম্পানিটির সর্বোচ্চ লভ্যাংশ ছিল। গত বছরও সম পরিমাণ লভ্যাংশ দিয়েছিল কোম্পানিটি। সে বছর শেয়ারে আয় ছিল ৫ টাকা ৪৯ পয়সা। এবার শেয়ার প্রতি ১১ টাকা ৫৭ পয়সা আয় করে ৩৭ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয়ার ঘোষণা এসেছে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার পর সবচেয়ে বেশি আয় করে নিজেদের ইতিহাসের সর্বোচ্চ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে টেলিকম খাতের প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি।

গত ৩০ জুন, ২০২১ তারিখে সমাপ্ত অর্থবছরের জন্য শেয়ারধারীদেরকে ৩ টাকা ৭০ পয়সা করে, অর্থাৎ ৩৭ শতাংশ লভ্যাংশ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

বৃহস্পতিবার পর্ষদ সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

২০১২ সালে তালিকাভুক্তির বছরে শেয়ার প্রতি ২ টাকা লভ্যাংশই এর আগে কোম্পানিটির সর্বোচ্চ লভ্যাংশ ছিল। গত বছরও সম পরিমাণ লভ্যাংশ দিয়েছিল কোম্পানিটি।

সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি আয় করেছে ১১ টাকা ৫৭ পয়সা। এটিও তাদের ইতিহাসের সর্বোচ্চ। আগের বছর এই আয় ছিল ৫ টাকা ৪৯ পয়সা।

কোম্পানিটির আয় বেড়েছে দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলে যুক্ত হওয়ার কারণে। এরপর আয় কীভাবে বেড়েছে, তা ২০১৬ সালের পর থেকে আর্থিক হিসাবে স্পষ্ট হবে।

২০১৬ সালে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছিল এক টাকা। পরের বছর তা কিছুটা বেড়ে হয় ১ টাকা ৯৩ পয়সা। ২০১৮ সালে শেয়ার প্রতি আয় কমে যায়। ওই বছর এই আয় হয় ৪৪ পয়সা।

তবে এরপর থেকে আয় বাড়তে থাকে। ২০১৯ সালে শেয়ারে ৩ টাকা ৫৫ পয়সা আর ২০২০ সালে আয় দাঁড়ায় ৫ টাকা ৮০ পয়সা।

২০২১ সালে কোম্পানির আয় প্রতি প্রান্তিকেই বেড়েছে। ২০২০ সালের জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রথম প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি ২ টাকা ১ পয়সা, অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত দ্বিতীয় প্রান্তিকে ২ টাকা ৩৬ পয়সা, জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত তৃতীয় প্রান্তিকে ৩ টাকা ২০ পয়সা এবং এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত চতুর্থ প্রান্তিকে আয় হয় ৪ টাকা।

কোম্পানিটি তৃতীয় সাবমেরিক ক্যাবলে যুক্ত হওয়ার সিদ্ধান্তও নিয়েছে।

কোম্পানিটির আয়ের মতো সম্পদমূল্যেও উল্লম্ফন হয়েছে। গত ৩০ জুন শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য ছিল ৫২ টাকা ৪৯ পয়সা। আগের বছর এই সম্পদমূল্য ছিল ৪০ টাকা ৯৩ পয়সা।

প্রতি প্রান্তিকেই আয় বাড়তে থাকার পর কোম্পানিটির শেয়ার মূল্যও বাড়তে থাকে। গত এক বছরে ১২৫ টাকা ১০ পয়সা থেকে কোম্পানিটির শেয়ার দর ২৩৬ টাকা পর্যন্ত উঠে। তবে লভ্যাংশ ঘোষণার দিন দাম ছিল ২১২ টাকা ৫০ পয়সা।

কোম্পানিটির লভ্যাংশ সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট ঠিক করা হয়েছে আগামী ১১ নভেম্বর। অর্থাৎ সেদিন যাদের হাতে শেয়ার থাকবে, তারাই পাবেন লভ্যাংশ। আগামী ৭ ডিসেম্বর বার্ষিক সাধারণ সভায় এই লভ্যাংশ চূড়ান্ত হবে।

আরও পড়ুন:
দুটি কোম্পানির শেয়ার পাবেন কর্মীরাও
বিডি ফুড: ইপিএস না বাড়লে লভ্যাংশ পাবেন না উদ্যোক্তারা
লভ্যাংশের নামে প্রতারণা, মামলা হচ্ছে সুহৃদ পরিচালকদের নামে
দ্বিগুণ কোম্পানির দরপতনেও বাড়ল সূচক
এক বছরে দ্বিগুণ বেড়ে পুঁজিবাজার এখন জিডিপির ২০ শতাংশ

শেয়ার করুন

১০ টাকার শেয়ারে ১৪ টাকা লোকসান

১০ টাকার শেয়ারে ১৪ টাকা লোকসান

তিন মাস আগে থেকে কোম্পানিটির শেয়ারদরে উত্থান ঘটে। গত ২৬ জুন কোম্পানিটির শেয়ারদর ছিল ৫ টাকা ৫০ পয়সা। সেখান থেকে টানা বাড়তে বাড়তে গত ৭ সেপ্টেম্বর গিয়ে দাঁড়ায় ১১ টাকা ৭০ পয়সা। পরদিন থেকে শুরু হয় দরপতন। ৫ সপ্তাহের ব্যবধানে সর্বোচ্চ দর থেকে শেয়ারদর কমেছে ৪ টাকা ২০ পয়সা।  

পর্ষদ পুনর্গঠনের খবরে শেয়ারদরে লাফ দিয়ে হাজারো বিনিয়োগকারীর টাকা আটকে যাওয়া ফাস ফাইন্যান্সের ২০২০ সালের আর্থিক হিসাব চরমভাবে হতাশা করেছে বিনিয়োগকারীদেরকে।

অর্থবছর শেষ হওয়ার ১০ মাস পর ডাকা পর্ষদ সভা শেষে জানানো হয়েছে ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত শেয়ার প্রতি ১৪ টাকা ৬১ পয়সা লোকসান হয়েছে কোম্পানিটির। বৃহস্পতিবার পর্ষদ সভা শেষে বিনিয়োগকারীদের জন্য কোনো লভ্যাংশও ঘোষণা করা হয়নি।

আলোচিত ব্যাংকার পি কে হালদার কেলেঙ্কারিতে ডুবে যাওয়া কোম্পানিটিকে টেনে তুলতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি পরিচালনা পর্ষদ পুনর্গঠন করে দিয়েছে। এরই মধ্যে একটি বড় কোম্পানিকে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে এর দায়িত্ব নিতে। তবে সেই কোম্পানিটি কোনো আগ্রহ দেখায়নি।

তবে এই প্রস্তাবকে কেন্দ্র করে তিন মাস আগে থেকে কোম্পানিটির শেয়ারদরে উত্থান ঘটে। গত ২৬ জুন কোম্পানিটির শেয়ারদর ছিল ৫ টাকা ৫০ পয়সা। সেখান থেকে টানা বাড়তে বাড়তে গত ৭ সেপ্টেম্বর গিয়ে দাঁড়ায় ১১ টাকা ৭০ পয়সা।

পরদিন থেকে শুরু হয় দরপতন। ৫ সপ্তাহের ব্যবধানে সর্বোচ্চ দর থেকে শেয়ারদর কমেছে ৪ টাকা ২০ পয়সা।

যখন শেয়ারদর বাড়ছিল, তখন তাতে বিনিয়োগ বাড়িয়ে চলেছিলেন বিনিয়োগকারীরা। বিপুল সংখ্যক শেয়ার কেনাবেচা হতে থাকে। আর বেশি দামে শেয়ার কিনে আটকা পড়েছেন হাজার হাজার বিনিয়োগকারী।

যখন দাম বাড়ছিল, তখন গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে যে, কোম্পানির লোকসান কমে আসবে। কিন্তু দেখা গেছে উল্টো চিত্র। গত বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ৮ টাকা ৫৪ পয়সা। পরের তিন মাসে অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত শেয়ার প্রতি লোকসান হয় ৬ টাকা ৭ পয়সা।

২০১৯ সালে কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি ১০ টাকা ১২ পয়সা লোকসান দিয়েছিল পি কে হালদার কেলেঙ্কারির কারণে।

পরপর দুই বছর বড় লোকসান দেয়ার কারণে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য শূন্য হয়ে উল্টো ঋণাত্মক হয়ে গেছে।

গত ৩০ ডিসেম্বর শেয়ার প্রতি দায় দাঁড়ায় ১৯৯ টাকা ৭০ পয়সা। আগের বছর শেয়ার প্রতি সম্পদ ছিল ১৬৯ টাকা ৪০ পয়সা।

কোম্পানিটির লভ্যাংশ সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ১৪ নভেম্বর। আগামী ৩০ নভেম্বর কোম্পানিটির বার্ষিক সাধারণ সভা ডাকা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
দুটি কোম্পানির শেয়ার পাবেন কর্মীরাও
বিডি ফুড: ইপিএস না বাড়লে লভ্যাংশ পাবেন না উদ্যোক্তারা
লভ্যাংশের নামে প্রতারণা, মামলা হচ্ছে সুহৃদ পরিচালকদের নামে
দ্বিগুণ কোম্পানির দরপতনেও বাড়ল সূচক
এক বছরে দ্বিগুণ বেড়ে পুঁজিবাজার এখন জিডিপির ২০ শতাংশ

শেয়ার করুন

লোকসান আরও বেড়েছে আইসিবি ব্যাংকের

লোকসান আরও বেড়েছে আইসিবি ব্যাংকের

গত বছর তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটি লোকসানের বৃত্ত থেকে বের হয়ে এসেছিল। সে বছর জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রথমবারের মতো শেয়ার প্রতি ১৭ পয়সা আয় করে চমক দেখায়। তবে অর্থবছর শেষে সেই লোকসানের বৃত্তেই থাকে।

শেয়ারদর বাড়তে থাকলেও পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের আর্থিক স্বাস্থ্যের কোনো উন্নতি হয়নি।

টানা তৃতীয় প্রান্তিকে ব্যাংকটি লোকসান দিল আর এর মধ্য দিয়ে গত জানুয়ার থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শেয়ার প্রতি লোকসান দাঁড়িয়েছে ৪৭ পয়সা। আগের বছর এই সময়ে লোকসান ছিল ১৫ পয়সা।

এর মধ্যে ৩২ পয়সা লোকসান ছিল জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত। আর জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত থেকে তিন মাসে লোকসান হয়েছে ১৫ পয়সা।

বৃহস্পতিবার কোস্পানির পরিচালনা পর্ষদের বৈঠক শেষে এই অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে।

গত বছর তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটি লোকসানের বৃত্ত থেকে বের হয়ে এসেছিল। সে বছর জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রথমবারের মতো শেয়ার প্রতি ১৭ পয়সা আয় করে চমক দেখায়। তবে অর্থবছর শেষে সেই লোকসানের বৃত্তেই থাকে।

লোকসানের কারণে লভ্যাংশ দিতে না পারলেও গত এক বছরে ব্যাংকটির শেয়ার মূল্যে উল্লম্ফন হয়েছে। পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বেশিরভাগ ব্যাংক গত বছর আকর্ষণীয় লভ্যাংশ ঘোষণা করলেও সেগুলোর শেয়ার মূল্য বেড়েছে কমই।

বিপরীতে লভ্যাংশ দিতে না পারা আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের শেয়ারদর এই সময়ে দ্বিগুণ হয়ে যায়।

গত বছরের জুলাইয়ে শেয়ারদর ২ টাকা ৮০ পয়সা থাকলেও বর্তমান দর ৫ টাকা ৫০ পয়সা।

তবে মাঝে একবার শেয়ারদর বেড়ে ৭ টাকা ৪০ পয়সা হয়ে যায়। ব্যাংকটি মুনাফায় ফিরছে, এমন গুঞ্জনের পাশাপাশি মালিকানা বদলের গুজব ছড়িয়ে পড়ার পর শেয়ারমূল্য বাড়তে থাকে। পাশাপাশি বাড়ে লেনদেন।

তবে গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া দর সংশোধনে দুর্বল নানা কোম্পানির পাশাপাশি আইসিবি ইসলামীও ব্যাপক দর হারিয়েছে। মাঝে দাম এক পর্যায়ে ৪ টাকা ৭০ পয়সাতেও নেমে গিয়েছিল। পরে কিছুটা বাড়ে।

কোম্পানিটির লোকসানের পাশাপাশি শেয়ার প্রতি দায়ও বাড়ছে। এই কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি কোনো সম্পদ নেই। উল্টো দায় আছে ১৮ টাকা ১ পয়সা। এটি গত সেপ্টেম্বরের হিসাব। গত বছরের ডিসেম্বরে এই দায় ছিল ১৭ টাকা ৫৪ পয়সা।

আরও পড়ুন:
দুটি কোম্পানির শেয়ার পাবেন কর্মীরাও
বিডি ফুড: ইপিএস না বাড়লে লভ্যাংশ পাবেন না উদ্যোক্তারা
লভ্যাংশের নামে প্রতারণা, মামলা হচ্ছে সুহৃদ পরিচালকদের নামে
দ্বিগুণ কোম্পানির দরপতনেও বাড়ল সূচক
এক বছরে দ্বিগুণ বেড়ে পুঁজিবাজার এখন জিডিপির ২০ শতাংশ

শেয়ার করুন

ন্যাশনাল পলিমারে লভ্যাংশ কমল

ন্যাশনাল পলিমারে লভ্যাংশ কমল

২০১১ সাল থেকে টানা বোনাস শেয়ার দিয়ে আসা কোম্পানিটি গত বছরই কেবল ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছিল। এবার তা ১০ শতাংশ করা হয়েছে।

আগের বছরের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় বাড়ার পর লভ্যাংশ কমিয়েছে পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত প্রকৌশল খাতের কোম্পানি ন্যাশনাল পলিমার।

গত ৩০ জুন সমাপ্ত অর্থবছরের জন্য শেয়ারপ্রতি ২ টাকা ৮২ পয়সা আয় করে ১ টাকা লভ্যাংশ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানিটি।

বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদের সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

কোম্পানির ইতিহাসে এটি সর্বোচ্চ নগদ লভ্যাংশ। ২০১১ সাল থেকে টানা বোনাস শেয়ার দিয়ে আসা কোম্পানিটি গত বছরই কেবল ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছিল।

ওই বছর কোম্পানিটি শেয়ারপ্রতি ২ টাকা ৫০ পয়সা আয় করে ১ টাকা ৫০ পয়সা লভ্যাংশ দিয়েছিল।

ওই বছর শেষে কোম্পানিটির মোট আয় শেয়ারপ্রতি ৪ টাকা ১২ পয়সা হয়েছিল। তবে পরে একটি শেয়ারের বিপরীতে একটি রাইট শেয়ার যুক্ত হওয়ার পর আয় সমন্বিত হয়ে কমে যায়। আবার প্রতি শেয়ারে ৫ টাকা প্রিমিয়াম যুক্ত হয়।

১০০ শতাংশ রাইট শেয়ার যুক্ত হওয়ার পর কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য কিছুটা কমেছে। গত ৩০ জুন এই সম্পদ দাঁড়িয়েছে ৩০ টাকা ৪৯ পয়সা। আগের বছর তা ছিল ৩৫ টাকা ৮৭ পয়সা।

এই লভ্যাংশসংক্রান্ত রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ১৪ নভেম্বর। অর্থাৎ সেদিন যাদের হাতে শেয়ার থাকবে, তারাই পাবে এই লভ্যাংশ।

এই লভ্যাংশ অনুমোদনের জন্য বার্ষিক সাধারণ সভা ডাকা হয়েছে আগামী ২২ ডিসেম্বর।

কোম্পানিটির শেয়ার দর গত এক বছরে ৫২ টাকা ৪০ পয়সা থেকে ৭৭ টাকা ৭০ পয়সা পর্যন্ত ওঠানামা করেছে। তবে তৃতীয় প্রান্তিকের আয় সংশোধনকে কেন্দ্র করে শেয়ারমূল্য পরে কমে যায়।

লভ্যাংশ ঘোষণার দিন শেয়ার দর ছিল ৫৬ টাকা ৬০ পয়সা।

আরও পড়ুন:
দুটি কোম্পানির শেয়ার পাবেন কর্মীরাও
বিডি ফুড: ইপিএস না বাড়লে লভ্যাংশ পাবেন না উদ্যোক্তারা
লভ্যাংশের নামে প্রতারণা, মামলা হচ্ছে সুহৃদ পরিচালকদের নামে
দ্বিগুণ কোম্পানির দরপতনেও বাড়ল সূচক
এক বছরে দ্বিগুণ বেড়ে পুঁজিবাজার এখন জিডিপির ২০ শতাংশ

শেয়ার করুন

তালিকাভুক্তির পর সর্বনিম্ন লভ্যাংশ বিবিএস ক্যাবলস

তালিকাভুক্তির পর সর্বনিম্ন লভ্যাংশ বিবিএস ক্যাবলস

কোম্পানিটি ২০২০ সালে শেয়ার প্রতি ৬ টাকা ৬৬ পয়সা আয় করে ১০ শতাংশ বোনাস ও ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল। ২০১৯ সালেও লভ্যাংশ ছিল সম পরিমাণ, ওই বছর শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৮ টাকা ১৭ পয়সা। ২০১৮ সালে শেয়ার প্রতি ৮ টাকা ৮ পয়সা আয় করে ১০ শতাংশ নগদের পাশাপাশি ১৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার দিয়েছিল কোম্পানিটি। ২০১৭ সালে তালিকাভুক্তির বছরে শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৪ টাকা ১২ পয়সা। প্রথম বছরে শেয়ার প্রতি ৫০ পয়সা নগদের পাশাপাশি ১৫ শতাংশ বোনাস পেয়েছিলেন বিনিয়োগকারীরা।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রকৌশল খাতের কোম্পানি বিবিএস ক্যাবলস আগের বছরের চেয়ে কম আয় করে লভ্যাংশ কমিয়েছে।

গত ৩০ জুন সমাপ্ত অর্থ বছরে শেয়ার প্রতি ৪ টাকা ৮৪ পয়সা আয় করে এক টাকা নগদ ও প্রতি ২০টি শেয়ারে একটি বোনাস শেয়ার দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

অর্থাৎ এবার ১০ শতাংশ নগদ ও ৫ শতাংশ বোনাস মিলিয়ে ১৫ শতাংশ লভ্যাংশ পাবে বিবিএস ক্যাবলসের বিনিয়োগকারীরা, যা ২০১৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির পর সবচেয়ে কম লভ্যাংশ।

বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়।

কোম্পানিটি ২০২০ সালে শেয়ার প্রতি ৬ টাকা ৬৬ পয়সা আয় করে ১০ শতাংশ বোনাস ও ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল। ২০১৯ সালেও লভ্যাংশ ছিল সম পরিমাণ, ওই বছর শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৮ টাকা ১৭ পয়সা।

২০১৮ সালে শেয়ার প্রতি ৮ টাকা ৮ পয়সা আয় করে ১০ শতাংশ নগদের পাশাপাশি ১৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার দিয়েছিল কোম্পানিটি। ২০১৭ সালে তালিকাভুক্তির বছরে শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৪ টাকা ১২ পয়সা। প্রথম বছরে শেয়ার প্রতি ৫০ পয়সা নগদের পাশাপাশি ১৫ শতাংশ বোনাস পেয়েছিলেন বিনিয়োগকারীরা।

কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য কিছুটা বেড়েছে। গত ৩০ জুন এই সম্পদমূল্য ছিল ৩৩ টাকা ৫০ পয়সা। আগের বছর তা ছিল ৩২ টাকা ৫২ পয়স।

লভ্যাংশ সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ১৪ নভেম্বর। অর্থাৎ সেদিন যাদের হাতে শেয়ার থাকবে, তারাই এই লভ্যাংশ পাবে। আগামী ২০ ডিসেম্বর বার্ষিক সাধারণ সভায় লভ্যাংশ চূড়ান্ত হবে।

আরও পড়ুন:
দুটি কোম্পানির শেয়ার পাবেন কর্মীরাও
বিডি ফুড: ইপিএস না বাড়লে লভ্যাংশ পাবেন না উদ্যোক্তারা
লভ্যাংশের নামে প্রতারণা, মামলা হচ্ছে সুহৃদ পরিচালকদের নামে
দ্বিগুণ কোম্পানির দরপতনেও বাড়ল সূচক
এক বছরে দ্বিগুণ বেড়ে পুঁজিবাজার এখন জিডিপির ২০ শতাংশ

শেয়ার করুন