নতুন প্রেরণায় দ্বিতীয় বছরে নিউজবাংলা

নতুন প্রেরণায় দ্বিতীয় বছরে নিউজবাংলা

নিউজবাংলা কার্যালয়ে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কাটছেন সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি চৌধুরী নাফিজ সরাফাতসহ অতিথিরা। ছবি: পিয়াস বিশ্বাস/নিউজবাংলা

নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকমের সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি চৌধুরী নাফিজ সরাফাত বলেন, ‘সবাই যখন বলেন, এই পরিবার খুব ভালো করছে, নিউজবাংলা ডুয়িং ভেরি ওয়েল। তখন প্রাউড ফিল করি। আমরা যখন কিছু করি, তখন আমরা চেষ্টা করি সেটাকে নেক্সট লেভেলে নিয়ে যাওয়ার জন্য। ইনশাল্লাহ নিউজবাংলাও একসময় এক নম্বর হবে, এটা আমাদের গোল।’

‘খবরের সব দিক, সব দিকের খবর’ স্লোগান ধারণ করে অগ্রযাত্রার এক বছর পূর্ণ করল নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকম। বিগত বছরের মতো আগামীতেও বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের পাশাপাশি অগণিত পাঠকমন জয়ের ধারাবাহিকতা ধরে হাঁটতে চায় বর্ষপূর্তিতে নতুন প্রেরণায় উদ্দীপ্ত সংবাদমাধ্যমটি।

নতুন প্রেরণায় দ্বিতীয় বছরে নিউজবাংলা

রাজধানীর বীর উত্তম রফিকুল ইসলাম অ্যাভিনিউয়ের নিজস্ব কার্যালয়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় সংবাদমাধ্যমটির প্রথম বর্ষপূর্তির কেক কাটেন সম্পাদকমণ্ডলীর সভাপতি চৌধুরী নাফিজ সরাফাত।

এ সময় তিনি বলেন, ‘দেখতে দেখতে এক বছর হয়ে গেল। আমরা আজ অনেক বড় পরিবার। আমি প্রাউড ফিল করছি, এত বড় একটি প্রফেশনাল টিম গড়ে উঠেছে। বিউটিফুল একটি টিম।

‘সবাই যখন বলেন, এই পরিবার খুব ভালো করছে, নিউজবাংলা ডুয়িং ভেরি ওয়েল, তখন প্রাউড ফিল করি। আমরা যখন কিছু করি, তখন আমরা চেষ্টা করি সেটাকে নেক্সট লেভেলে নিয়ে যাওয়ার জন্য। ইনশাল্লাহ নিউজবাংলাও একসময় এক নম্বর হবে, এটা আমাদের গোল।’

নিউজবাংলা কখনও অপেশাদার কিছুর মধ্যে যাবে না, পক্ষপাতিত্ব করবে না বলেও জানান নাফিজ সরাফাত।

অনুষ্ঠানে অতিথিদের শুভেচ্ছা জানান নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকম-এর সম্পাদক স্বদেশ রায়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নিউজবাংলার নির্বাহী সম্পাদক হাসান ইমাম রুবেল, ব্যবস্থাপনা সম্পাদক শেখ জাহিদুর রহমান, বার্তাপ্রধান সঞ্জয় দে, কনসালট্যান্ট নিউজ শিবব্রত বর্মন, প্রধান বার্তা সম্পাদক ওয়াসেক বিল্লাহ সৌধসহ প্রতিষ্ঠানের কর্মীরা।

শুভেচ্ছা জানাতে অনুষ্ঠানে যোগ দেন আমাদের নতুন সময় ও আমাদের অর্থনীতির সম্পাদক নাঈমুল ইসলাম খান, প্রতিদিনের সংবাদের সম্পাদক শেখ নজরুল ইসলাম, ঢাকা পোস্টের সম্পাদক মহিউদ্দিন সরকার, জাগো নিউজের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কে এম জিয়াউল হক, রাইজিং বিডির ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক এম এম কায়সার, এনটিভি অনলাইনের বার্তাপ্রধান খন্দকার ফখরুদ্দীন আহমেদ জুয়েলসহ গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বরা।

নতুন প্রেরণায় দ্বিতীয় বছরে নিউজবাংলা

প্রতিষ্ঠার এক বছরেই নিউজবাংলা যে পাঠকপ্রিয়তা পেয়েছে, তার উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন অতিথিরা। এই প্রশংসা যেন প্রতিষ্ঠানটি ধরে রাখতে পারে সেই প্রত্যাশাও রাখেন তারা।

গণমাধ্যমের খুব খারাপ সময়েও নিউজবাংলার শুরুটা চমৎকার হয়েছে বলে উল্লেখ করেন দেশের সাংবাদিকতায় পরিচিত মুখ নাঈমুল ইসলাম খান।

তিনি বলেন, ‘চমৎকার একটা শুরু হয়েছে। শুরুটা শুধু চমৎকারই ছিল না, এটা সৃজনশীল ছিল, সাহসী ছিল। আমি বলব যে, এর মধ্যে অনেক সাংবাদিকতার গুণগত মান ও পেশার প্রতি অবিচল আস্থাটাও ছিল। একটা ফাউন্ডেশন তৈরি করার জন্য আমি বলি চমৎকার এক বছর। আগামী বছরগুলোতে নিউজবাংলা এই ফাউন্ডেশনের ওপর উঁচু ইমারত তৈরি করতে পারবে বলে বিশ্বাস করি।

‘বাংলাদেশের অনেক সফল গণমাধ্যম সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে পারছে না বলে তারা কিন্তু ক্ষয়ে যাচ্ছে। সেই জায়গায় আমাদের জন্য একটা সম্ভাবনা, আমি বলব যে গত এক বছরে সফল সম্ভাবনার উদ্বোধন হয়েছে নিউজবাংলার।’

নতুন প্রেরণায় দ্বিতীয় বছরে নিউজবাংলা

নিউজবাংলাকে ভিন্নধর্মী ‘নিও মিডিয়া’ হিসেবে উল্লেখ করে ঢাকা পোস্ট সম্পাদক মহিউদ্দিন সরকার বলেন, ‘এই সময়ের একটু ভিন্নধর্মী যেসব নিও মিডিয়া আছে তার মধ্যে অনেক এগিয়ে আছে নিউজবাংলা। নিউজবাংলাসহ অন্যান্য যেসব নিও মিডিয়া আছে তারা এখন অন্যদের ডমিনেট করছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘নিউজবাংলা এক বছর পার করল। এটা ঐতিহ্যের এক বছর, আমি বলব সাফল্যেরও এক বছর। গত এক বছর ধরে পাঠকদের মাঝে অনলাইনে অনেক নতুন নতুন ধারণা, কনটেন্ট, আইডিয়া যোগ করেছে নিউজবাংলা, যেটা পাঠক মহলে সমাদৃত হয়েছে।

‘আমি আশা করব, আগামীর পথচলায় তারা আরও ভালো ভালো কনটেন্ট দেবে। এখন অনলাইনের যুগ। নিউজবাংলা গত এক বছরে অনেক ভালো করেছে। নিউজবাংলা প্রথম সারির গণমাধ্যম হিসেবে এরই মধ্যে প্রতিষ্ঠা পেয়েছে এবং আশা করি তারা ভবিষ্যতে আরও ভালো করবে।’

নতুন প্রেরণায় দ্বিতীয় বছরে নিউজবাংলা

জাগো নিউজের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক কে এম জিয়াউল হক বলেন, ‘এক বছরে নিউজবাংলা অনেক ভালো নিউজ করেছে। আমার মনে হয় অনলাইন পাঠকদের যে চাহিদা তার অনেকটাই তারা পূরণ করতে পেরেছে।’

রাইজিং বিডির ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক এম এম কায়সার বলেন, ‘নিউজবাংলার কালার আর ট্যাগ লাইন আমার খুব পছন্দ। গত এক বছরে তারা যেভাবে পারফর্ম করেছে, এটা যদি ধরে রাখতে পারে তাহলে যে লক্ষ্য নিয়ে নিউজবাংলা এসেছে তার কাছাকাছি তারা যেতে পারবে।’

এনটিভি অনলাইন সংস্করণের প্রধান ফখরুদ্দিন আহমেদ জুয়েল বলেন, ‘একটা কথা আমরা সব সময়ই বলে থাকি, ডিজিটাল উইল রুল। এই যে ডিজিটাল মাধ্যমে মানুষ বিভিন্ন সংবাদ পড়ছে, তাতে নিউজবাংলা একটি চমৎকার ভূমিকা পালন করছে। আমি আশা করব, এ ধারা অব্যাহত থাকবে।’

নতুন প্রেরণায় দ্বিতীয় বছরে নিউজবাংলা

দৈনিক প্রতিদিনের সংবাদ পত্রিকার সম্পাদক শেখ নজরুল ইসলাম বলেন, ‌‘অনলাইনের স্বর্ণযুগে মাত্র এক বছরে নিউজবাংলা যে জায়গায় এসেছে এটি তাদের প্রচেষ্টারই ফসল। আমি মনে করি, এটি যদি ধরে রাখা যায় তাহলে একটি গুড টিম হতে আর কোনো সময় লাগবে না। এক বছর খুবই কম সময়, কিন্তু আমি চাইব আরও ১০০ বছর যখন হয়তো আমরা থাকব না, তখনও নিউজবাংলা থাকবে।’

নিউজবাংলার পথচলায় শুভেচ্ছা জানান অ্যাটর্নি জেনারেল এ এম আমিন উদ্দিন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার শফিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, বাফুফে সভাপতি কাজী সালাউদ্দিনসহ অনেকে।

অ্যাটর্নি জেনারেলের পক্ষে শুভেচ্ছা জানাতে এসে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন (মানিক) বলেন, ‘আমরা প্রতিদিনই মোটামুটি এটা দেখি। বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ পরিবেশন করছে নিউজবাংলা টোয়েন্টিফোর ডটকম। আশা করি, ভবিষ্যতেও এটি বজায় থাকবে এবং সঠিক সংবাদটাই প্রচার করবে।’

নতুন প্রেরণায় দ্বিতীয় বছরে নিউজবাংলা

সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার ব্যাংকের প্রতিনিধি আসাদুল্লাহ গালিব বলেন, ‘একটা সংবাদ নতুন আঙ্গিকে অনেক দিক বিশ্লেষণ করে নিউজবাংলা যেভাবে আমাদের সামনে তুলে ধরছে, যদিও এক বছরে মূল্যায়ন করাটা কঠিন কিন্তু তাদের সংবাদে পাঠকদের যে আশা দেয়া হয়েছিল, তার বেশির ভাগই নিউজবাংলা পূরণ করতে পেরেছে।’

স্ট্র্যাটেজিক ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনভেস্টমেন্টের স্বতন্ত্র পরিচালক আরিফ খান বলেন, ‘এখনকার প্রজন্ম কিন্তু প্রিন্টের চেয়ে অনলাইনেই সংবাদ পড়তে বেশি পছন্দ করে। আমরাও কিন্তু সময়ের অপ্রতুলতার কারণে এগুলো দেখি। এই পত্রিকাটি আসলেই একটি নতুনত্ব নিয়ে এসেছে। বিশেষ করে অর্থনীতি এবং পুঁজিবাজার নিয়ে যে প্রতিবেদনগুলো হয়, সেগুলো অনেক বিশ্লেষণমূলক ও তথ্যবহুল। এগুলোতে অনেক তথ্য পাওয়া যায়, যেগুলো পরবর্তী সময়ে সিদ্ধান্ত নিতে সহযোগিতা করে।’

পদ্মা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এহসান খশরু বলেন, ‘নিউজবাংলা নতুন হলেও এর পাঠক অনেক বেশি। এটি ক্রমেই বেড়ে চলেছে। এর শুরুতেই যে সারসংক্ষেপ থাকে, সেটি পুরো রিপোর্টটি সম্বন্ধে পাঠকদের একটি ধারণা দেয়, এটা একটা নতুনত্ব।’

নতুন প্রেরণায় দ্বিতীয় বছরে নিউজবাংলা
নিউজবাংলাকে শুভেচ্ছা জানাতে আসেন পদ্মা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এহসান খশরু

সোস্যাল ইসলামী ব্যাংকের ভাইস প্রেসিডেন্ট মনিরুজ্জামান টিপু বলেন, ‘পাঠক হিসেবে আশা করব, যেভাবে নিউজবাংলা এগিয়ে যাচ্ছে, সেভাবেই এগিয়ে যাবে এবং সত্যকে সত্য ও মিথ্যাকে মিথ্যা বলবে এবং এভাবেই পাঠকের আস্থা অর্জন করবে।’

বর্ষপূর্তি উপলক্ষে নিউজবাংলা কার্যালয়ে শুক্রবার সকাল থেকেই ছিল উৎসবের আমেজ। দিনভর অতিথিরা আসেন, নিউজবাংলার শুভকামনায় বক্তব্য রাখেন। তাদের মধ্যে ছিলেন কিংবদন্তি ফুটবলার কায়সার হামিদ, তারকা ফুটবলার জাহিদ হাসান এমিলি ও জাতীয় ব্যাডমিন্টন চ্যাম্পিয়ন এনায়েত উল্লাহসহ আরও অনেকে।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘আমরা এমন একটি সময় অতিক্রান্ত করছি, যেখানে স্বাধীন সংবাদমাধ্যম হুমকির মুখে। এর মধ্যেও যে এক বছর আপনারা পার করেছেন, সেটি একটি বড় কাজ বলে আমি মনে করি। যেকোনো কাজের মধ্যেই যদি সততা, নিষ্ঠা এবং অবজেক্টিভটা যদি খুব পরিষ্কার থাকে, তাহলে তার ওপর যতই অত্যাচার করুক না কেন, সেটাকে কখনোই ধ্বংস করা যায় না। আমি বিশ্বাস করি, নিউজবাংলা সেই প্রত্যয় নিয়ে, সেই আদর্শ নিয়ে এগিয়ে যাবে।’

নতুন প্রেরণায় দ্বিতীয় বছরে নিউজবাংলা

চলচ্চিত্র নির্মাতা রাশিদ পলাশ বলেন, ‘গত এক বছরে আমরা নিউজবাংলার যে কার্যক্রম দেখেছি, তা আমাদের খুব মুগ্ধ করেছে। প্রথম বছরে যেহেতু তারা ভালো করেছে, তাই তাদের কাছে প্রত্যাশাও বেশি। আশা করি, আগামী বছর তারা আরও ভালো করবে। একটা জিনিস যখন প্রথমেই ভালো হয়ে যায়, তখন তার চ্যালেঞ্জও কিন্তু বেড়ে যায়। সেই জায়গা থেকে নিউজবাংলা এ চ্যালেঞ্জ নিতে পারবে বলেই আমি আশা করি।’

ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদ আলম খান তপু বলেন, ‘যখন গুজব মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে, তখন গণতান্ত্রিক ও আধুনিক গণমাধ্যম দরকার হয়। নিউজবাংলা এ বিষয়ে সর্বদা সচেষ্ট রয়েছে, সতর্ক রয়েছে। আশা করি, তারা এ ধারা অব্যাহত রাখবে। মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ করে নিউজবাংলা আগামীতে পথ চলুক।’

বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (বিএফইউজে) সাবেক মহাসচিব ও জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি ওমর ফারুক বলেন, ‘পেশাদারত্বের জন্য আমরা নিউজবাংলার জন্য গর্বিত। তারা এভাবেই এগিয়ে যাক, এটাই আমরা চাই। আমাদের ডিজিটাল বাংলাদেশে এ ধরনের সংবাদমাধ্যম অত্যন্ত প্রয়োজন।’

নিউজবাংলার বর্ষপূর্তি উদযাপনে একই আয়োজন ছিল দেশের সব জেলা ও বিভাগীয় শহরেও। আয়োজন করা শোভাযাত্রা, সভা, সেমিনার। এসব অনুষ্ঠানে স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ অংশ নেন।

নতুন প্রেরণায় দ্বিতীয় বছরে নিউজবাংলা
কিশোরগঞ্জে নিউজবাংলার প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর অনুষ্ঠানে কেক কাটেন কিশোরগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য রাষ্ট্রপতিপুত্র রেজওয়ান আহাম্মদ তৌফিক

সারা দেশে ৬৪টি জেলায় প্রতিনিধি ও ঢাকায় প্রায় ৮০ জন কর্মী নিয়ে যাত্রা শুরু করেছিল নিউজবাংলা। এই এক বছরে উল্লেখযোগ্য বেশ কিছু অনুসন্ধানী প্রতিবেদন তৈরি করে পাঠকের আস্থা অর্জন করে নিয়েছে এই নিউজপোর্টাল।

সেই সঙ্গে সংবাদের বিশ্লেষণ, সংবাদভাষ্য দেয়ার মাধ্যমে এটি পাঠকের কৌতূহল পূরণ করে চলছে। খবরের পাশাপাশি ছবি, ভিডিও, লাইভ করে পাঠকের কাছাকাছি চলে এসেছে নিউজবাংলা।

আরও পড়ুন:
রংপুরে নিউজবাংলা ফোরামের যাত্রা
প্রগতিশীল সাংবাদিকতার স্বাক্ষর রেখেছে নিউজবাংলা: নেত্রকোণায় অতিথিরা
কক্সবাজারে নিউজবাংলার বর্ষপূর্তির বর্ণিল আয়োজন
ভিজ্যুয়াল পিকচার নিউজে অনন্য নিউজবাংলা: যশোরে অতিথিরা
‘অল্প সময়ে পাঠকের মনে নিউজবাংলা’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

কঠিন চীবর দানে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি কামনা

কঠিন চীবর দানে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি কামনা

আশুলিয়ার উদযাপিত কঠিন চীবর দান। ছবি: নিউজবাংলা

ধর্মীয় গুরু নন্দপাল মহাস্থবির ভান্তে বলেন, ‘যারা দুঃখী ব্যক্তি তারা যেন মুক্তিলাভ করেন। যারা সুখী আছেন তারা যেন আরও সুখী হন। ইহলোকে যেমন সুখী হয়, পরলোকেও যেন জন্ম-জন্মান্তরে তারা সুখী হতে পারে। পুরো বিশ্বে যেন সম্প্রীতি বজায় থাকে।’

বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব কঠিন চীবর দান উদযাপন চলছে ঢাকার সাভারে। আশুলিয়ার পলাশবাড়ী এলাকায় বন বিহার বৌদ্ধমন্দিরে শুক্রবার ভোর থেকে গৌতম বুদ্ধের উপাসনায় মগ্ন হয়েছেন পুণ্যার্থীরা।

বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে দলে দলে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা মন্দিরে জড়ো হতে থাকেন। উৎসবমুখর পরিবেশে নানা ধর্মীয় আচার পালন করেন তারা।

সেখানে ধর্মীয় গুরু পরম পূজ্য নন্দপাল মহাস্থবির ভান্তে ত্রিপিঠক পাঠ করেন। পুণ্যার্থিদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘এই দানের মাধ্যমে প্রার্থনা করা হয় নিজের পরে যেন মানবজাতি সুখে থাকে। এরপর যে সমস্ত প্রাণী বিশ্ব ব্রহ্মাণ্ডে আছে তারাও যেন সুখী থাকে।

‘সেই প্রাণীদের জন্যও আমরা এই পুণ্য বিতরণ করি। যারা দুঃখী ব্যক্তি তারা যেন মুক্তিলাভ করেন। যারা সুখী আছেন তারা যেন আরও সুখী হন। ইহলোকে যেমন সুখী হয়, পরলোকেও যেন জন্ম-জন্মান্তরে তারা সুখী হতে পারে। পুরো বিশ্বে যেন সম্প্রীতি বজায় থাকে।’

কঠিন চীবর দানে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি কামনা

হিলি চাকমা নামে এক পুণ্যার্থী বলেন, ‘এই অনুষ্ঠানের জন্য সবাই অনেক দিনের একটা প্রতীক্ষায় থাকি। এই অনুষ্ঠানটা আমাদের বড় ধর্মীয় অনুষ্ঠান। আমরা বলি দানোত্তম কঠিন চীবর দান। শাস্ত্রে বলা হয় যে, আজকে আমরা যে দান করব, এই দানের ফলটা শতবর্ষে আমরা অন্যান্য কোনো দান করলে যে ফলটা হবে, সেটা এটার ষোল ভাগের এক ভাগও হবে না... অনেক দূর থেকে সবাই এখানে এসেছেন।’

সাভার বন বিহার পরিচালনা কমিটির সভাপতি অজয় প্রকাশ চাকমা বলেন, ‘এই অনুষ্ঠান আমাদের সর্বজনীন একটা গুরুত্ব লাভ করুক। দেশবাসীর কাছে আমাদের এই শান্তির বাণী পৌঁছে যাক। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আহ্বানে একটি অসাম্প্রদায়িক ও ধর্মান্ধহীন দেশে পরিণত হোক বাংলাদেশ এই কামনা করছি।’

আরও পড়ুন:
রংপুরে নিউজবাংলা ফোরামের যাত্রা
প্রগতিশীল সাংবাদিকতার স্বাক্ষর রেখেছে নিউজবাংলা: নেত্রকোণায় অতিথিরা
কক্সবাজারে নিউজবাংলার বর্ষপূর্তির বর্ণিল আয়োজন
ভিজ্যুয়াল পিকচার নিউজে অনন্য নিউজবাংলা: যশোরে অতিথিরা
‘অল্প সময়ে পাঠকের মনে নিউজবাংলা’

শেয়ার করুন

রঙিন ফানুস উড়াল এবিএসবি

রঙিন ফানুস উড়াল এবিএসবি

প্রবারণা পূর্ণিমায় নন্দনকানন চট্টগ্রাম বৌদ্ধবিহার এবং ঢাকা ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারে ফানুসগুলো উত্তোলন করা হয়।

বাংলাদেশের বৌদ্ধ শিক্ষার্থীদের ধর্মীয় ও সামাজিক সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অফ বুড্ডিস্ট স্টুডেন্টস অফ বাংলাদেশের (এবিএসবি) আয়োজনে প্রবারণা পূর্ণিমায় আকাশে উড়েছে চিত্রকর্মে রঙিন ফানুস।

নন্দনকানন চট্টগ্রাম বৌদ্ধবিহার এবং ঢাকা ধর্মরাজিক বৌদ্ধ মহাবিহারে বুধবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে ফানুসগুলো উত্তোলন করা হয়।

এর আগে ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগে ফানুস তৈরির কর্মশালায় সব বয়সের মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে অংশ নেন।

এবিএসবির উদ্যোগে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো হ্যান্ডপেইন্টেড ফানুস অর্থাৎ হাতে আঁকা রঙিন ফানুস উড়ল। প্রতিটি ফানুসে মহামতী গৌতম বুদ্ধের জীবনের সব গুরুত্বপূর্ণ সময়ের ছবি সুনিপুণভাবে তুলে ধরা হয়।

আরও পড়ুন:
রংপুরে নিউজবাংলা ফোরামের যাত্রা
প্রগতিশীল সাংবাদিকতার স্বাক্ষর রেখেছে নিউজবাংলা: নেত্রকোণায় অতিথিরা
কক্সবাজারে নিউজবাংলার বর্ষপূর্তির বর্ণিল আয়োজন
ভিজ্যুয়াল পিকচার নিউজে অনন্য নিউজবাংলা: যশোরে অতিথিরা
‘অল্প সময়ে পাঠকের মনে নিউজবাংলা’

শেয়ার করুন

মেঘাচ্ছন্ন আকাশে প্রবারণা পূর্ণিমা

মেঘাচ্ছন্ন আকাশে প্রবারণা পূর্ণিমা

মেঘাচ্ছন্ন আকাশ, বৃষ্টির মাঝেই ফানুস উড়িয়ে উদযাপিত হয় প্রবারণা পূর্ণিমা। ছবি: নিউজবাংলা

প্রবারণা উৎসবকে ঘিরে রাঙ্গামাটির রাজবন বিহার আলোয় সজ্জিত করা হয়। বুদ্ধ পতাকা উত্তোলন, পঞ্চশীল প্রার্থনা, বুদ্ধমূর্তিদান, সংঘদান, অষ্টপরিষ্কারদান, পিণ্ডদানসহ নানাবিধ দানের আয়োজন করা হয়। প্রদীপ পূজা, আলোকসজ্জা, বিশ্বশান্তি কামনায় সম্মিলিত বুদ্ধোপাসনা হয় মন্দিরে মন্দিরে।

সাম্প্রদায়িক সংঘাতের ছায়ায় গুমোট পরিবেশে ধর্মীয় উৎসবে, সহিংসতার রাশ টেনে ধরেছে প্রাণের উচ্ছ্বাস। প্রকৃতিতে একই রূপ। বুধবার প্রবারণা পূর্ণিমার আকাশ ছিল মেঘাছন্ন। তবুও থেমে থাকেনি বৌদ্ধ ধর্মীয় আচার। বিহারে বিহারে উড়েছে ফানুস।

প্রবারণার সকাল শুরু হয় বৌদ্ধ মন্দিরে ভিক্ষু সংঘের প্রাতরাশ, মঙ্গলসূত্র পাঠ, বুদ্ধপূজা, পঞ্চশিল ও অষ্টাঙ্গ উপসথ শিল গ্রহণের মধ্য দিয়ে। এরপর মহাসংসদান, অতিথি আপ্যায়ন, পবিত্র ত্রিপিটক থেকে পাঠ, আলোচনা সভা, প্রদীপ পূজা, আলোকসজ্জা, বিশ্বশান্তি কামনায় সম্মিলিত বুদ্ধোপাসনা হয় মন্দিরে মন্দিরে।

বুধবার সারা দেশে একসঙ্গে উদযাপন হয়েছে মুসলমানদের ধর্মীয় উৎসব ঈদে মিলাদুন্নবী, হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের লক্ষ্মীপূজা আর বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের প্রবারণা পূর্ণিমা।

রাজধানীর বাসাবো ধর্মরাজিক বৌদ্ধ বিহারে বুধবার সন্ধ্যায় ফানুস ওড়ানোর উৎসব শুরু হয়। তার আগে সেখানে পালন হয়েছে নানা ধর্মীয় আচার। মধ্য বাড্ডার বৌদ্ধ মন্দিরেও দিনভর ছিল নানা আয়োজন। সন্ধ্যায় আকাশে উড়েছে হরেক রকম ফানুস। যদিও দফায় দফায় বৃষ্টি প্রভাব ফেলেছে আয়োজনে।

প্রবারণার সবচেয়ে বড় আয়োজন ছিল রাঙ্গামাটির রাজবন বিহারে। সেখানে সুখ, শান্তি, মঙ্গলপ্রার্থনা ও পরস্পরকে ক্ষমা প্রদর্শন, পুণ্যার্থীদের ভক্তি-শ্রদ্ধা ও পূজার মধ্য দিয়ে মুখর হয়ে ওঠে বিহার।

রাজবন বিহার ছাড়াও সদর উপজেলার যমচুগ বনাশ্রম ভাবনাকেন্দ্রসহ বিভিন্ন শাখা বনবিহারে উৎসব হয়।

বুদ্ধ পতাকা উত্তোলন, পঞ্চশীল প্রার্থনা, বুদ্ধমূর্তিদান, সংঘদান, অষ্টপরিষ্কারদান, পিণ্ডদানসহ নানা আয়োজন ছিল। প্রবারণা উৎসব ঘিরে পুরো রাজবন বিহার সজ্জিত হয় বর্ণিল আলোয় ।

অন্যদিকে প্রবারণার পরিসমাপ্তির মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার থেকে পার্বত্য তিন জেলায় শুরু হবে দানোত্তম কঠিন চীবর দানোৎসব।

তবে এ বছর রাজবন বিহারে 'বেইন বুনা' হবে না বলে জানিয়েছে রাঙ্গামাটি রাজবন বিহার পরিচালনা কমিটি।

মেঘাচ্ছন্ন আকাশে প্রবারণা পূর্ণিমা

রাঙ্গামাটির আয়োজনে স্বাগত বক্তব্য রাখেন রাজবন বিহার পরিচালনা কমিটির সভাপতি গৌতম দেওয়ান। রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অংসুই প্রু চৌধুরী রাখেন বিশেষ বক্তব্য।

পঞ্চশীল প্রার্থনা করেন ৬ নম্বর বালুখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বিজয়গিরি চাকমা।

এ সময় পার্বত্য চট্টগ্রামবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সাবেক উপমন্ত্রী মণিস্বপন দেওয়ানসহ উপস্থিত ছিলেন অনেকে।

মেঘাচ্ছন্ন আকাশে প্রবারণা পূর্ণিমা

প্রবারণা অনুষ্ঠান বৌদ্ধদের অন্যতম একটি ধর্মীয় ও সামাজিক উৎসব। এটি দিয়ে বৌদ্ধ ভিক্ষুদের বর্ষাবাসের পরিসমাপ্তি, বর্ষাবাস ত্যাগ, প্রায়শ্চিত্তকে বোঝায়। বৌদ্ধ ভিক্ষুদের তিন মাস বর্ষাবাস শেষে তাদের অজান্তে ভুলত্রুটি হয়ে থাকলে একে অন্যের কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা করা হয়।

এ ছাড়া প্রবারণাকে আত্ম-অন্বেষণ ও আত্মসমর্পণের তিথিও বলা যায়। আবার এই দিনে পূর্ণাঙ্গ অভিধর্ম দেশনা সমাপ্ত হওয়ায় এই দিনটি অভিধর্ম নামেও পরিচিত।

আরও পড়ুন:
রংপুরে নিউজবাংলা ফোরামের যাত্রা
প্রগতিশীল সাংবাদিকতার স্বাক্ষর রেখেছে নিউজবাংলা: নেত্রকোণায় অতিথিরা
কক্সবাজারে নিউজবাংলার বর্ষপূর্তির বর্ণিল আয়োজন
ভিজ্যুয়াল পিকচার নিউজে অনন্য নিউজবাংলা: যশোরে অতিথিরা
‘অল্প সময়ে পাঠকের মনে নিউজবাংলা’

শেয়ার করুন

প্রবারণা পূর্ণিমা আজ

প্রবারণা পূর্ণিমা আজ

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশে সকল ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষের নিজ নিজ ধর্ম পালনের স্বাধীনতা নিশ্চিত করেছিলেন। তার ধারাবাহিকতায় বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের সময় ‘ধর্ম যার যার, উৎসব সবার’ এ আপ্তবাক্য ধারণ করে অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের সকল ধর্ম ও বর্ণের মানুষ যার যার ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করে যাচ্ছেন।’

বৌদ্ধ ধর্মানুসারীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব শুভ প্রবারণা পূর্ণিমা ও কঠিন চীবর দান আজ। মহামতি গৌতম বুদ্ধ নির্বাণ লাভের পর আষাঢ়ি পূর্ণিমা থেকে আশ্বিনী পূর্ণিমা তিথি পর্যন্ত তিন মাস বর্ষাবাস শেষে প্রবারণা পালন করেন। সেই থেকে বৌদ্ধধর্মীয় গুরুরা বর্ষাবাস শেষে দিনটি পালন করে আসছেন।

আত্মশুদ্ধি অর্জনের মধ্য দিয়ে অশুভকে বর্জন করে সত্য ও সুন্দরকে বরণের আয়োজন হলো প্রবারণা।

প্রবারণা পূর্ণিমা উপলক্ষে বাংলাদেশ বৌদ্ধ ফেডারেশন রাজধানীর মেরুল বাড্ডায় আন্তর্জাতিক বৌদ্ধবিহারে দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। এদিন ভিক্ষু সংঘের প্রাতরাশ, মঙ্গলসূত্র পাঠ, বুদ্ধপূজা, পঞ্চশিল ও অষ্টাঙ্গ উপসথ শিল গ্রহণ, মহাসংসদান, অতিথি আপ্যায়ন, পবিত্র ত্রিপিটক থেকে পাঠ, আলোচনা সভা, প্রদীপ পূজা, আলোকসজ্জা, বিশ্বশান্তি কামনায় সম্মিলিত বুদ্ধোপাসনা, ফানুস ওড়ানো ও বুদ্ধকীর্তনসহ নানা ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠিত হয়।

দিনটি উপলক্ষে আলাদা বাণী দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির ধারা অব্যাহত রেখে জাতীয় উন্নয়ন ও অগ্রগতিকে আরও ত্বরান্বিত করতে সকলকে নিজ নিজ অবস্থান থেকে অবদান রাখার আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি।

তিনি বলেন, ‘মহামতি গৌতম বুদ্ধ একটি শান্তিপূর্ণ ও সৌহার্দ্যময় বিশ্ব গঠনে আজীবন সাম্য, মৈত্রী, মানবতা ও শান্তির অমিয় বাণী প্রচার করে গেছেন। তাঁর আদর্শ ত্যাগের মহিমায় সমুজ্জ্বল ও মানবিকতায় পরিপূর্ণ। বুদ্ধের অহিংস বাণী ও জীবপ্রেম আজও বিশ্বব্যাপী বিপুল সমাদৃত।’

রাষ্ট্রপতির আশা, ধর্মীয় মর্যাদায় কঠিন চীবর দান উদযাপনের মাধ্যমে বৌদ্ধ সমাজের শান্তি ও সম্প্রীতির বার্তা সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়বে।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। আবহমানকাল ধরে বয়ে চলা এ সম্প্রীতি দেশের ঐতিহ্য।’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সরকার দেশে বিরাজমান সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা করে বাংলাদেশকে বিশ্বসভায় একটি উন্নত ও শান্তিপূর্ণ দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে বদ্ধপরিকর।

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ। সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা-উত্তর বাংলাদেশে সকল ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষের নিজ নিজ ধর্ম পালনের স্বাধীনতা নিশ্চিত করেছিলেন। তার ধারাবাহিকতায় বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের সময় ‘ধর্ম যার যার, উৎসব সবার’এ আপ্তবাক্য ধারণ করে অসাম্প্রদায়িক চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের সকল ধর্ম ও বর্ণের মানুষ যার যার ধর্ম স্বাধীনভাবে পালন করে যাচ্ছেন।’

আওয়ামী লীগ সরকার দেশে বিরাজমান সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষা করে বাংলাদেশকে বিশ্বসভায় একটি উন্নত ও শান্তিপূর্ণ দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে বদ্ধপরিকর বলেও জানান সরকারপ্রধান।

আরও পড়ুন:
রংপুরে নিউজবাংলা ফোরামের যাত্রা
প্রগতিশীল সাংবাদিকতার স্বাক্ষর রেখেছে নিউজবাংলা: নেত্রকোণায় অতিথিরা
কক্সবাজারে নিউজবাংলার বর্ষপূর্তির বর্ণিল আয়োজন
ভিজ্যুয়াল পিকচার নিউজে অনন্য নিউজবাংলা: যশোরে অতিথিরা
‘অল্প সময়ে পাঠকের মনে নিউজবাংলা’

শেয়ার করুন

আজ পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী

আজ পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী

ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে দিনটিকে বেশ গুরুত্বের সঙ্গে দেখেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। আরব জাহান যখন পৌত্তলিকতার অন্ধকারে ডুবে যায়, তখন হজরত মুহাম্মদ (সা.)-কে বিশ্বজগতের ত্রাতা হিসেবে রহমতস্বরূপ পাঠিয়েছিলেন মহান আল্লাহ।

আজ ১২ রবিউল আউয়াল, পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.)। ইসলাম ধর্মের সর্বশেষ নবী ও মহান আল্লাহতালার প্রেরিত রাসুল হজরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জন্ম ও মৃত্যুর পুণ্যময় দিন।

৫৭০ খ্রিষ্টাব্দের এই দিনে সৌদি আরবের মক্কায় জন্মগ্রহণ করেন মহানবী হজরত মুহাম্মদ (সা.)। ৬৩২ খ্রিষ্টাব্দের এই দিনে ইহলোক ত্যাগ করেন তিনি।

ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে দিনটিকে বেশ গুরুত্বের সঙ্গে দেখেন ধর্মপ্রাণ মুসলমানরা। আরব জাহান যখন পৌত্তলিকতার অন্ধকারে ডুবে যায়, তখন হজরত মুহাম্মদ (সা.)-কে বিশ্বজগতের ত্রাতা হিসেবে রহমতস্বরূপ পাঠিয়েছিলেন মহান আল্লাহ।

ন্যায়, নিষ্ঠা ও সত্যবাদিতা দিয়ে বালক বয়স থেকেই ‘আল-আমিন’ তথা বিশ্বাসী হিসেবে পরিচিতি পেয়েছিলেন হজরত মুহাম্মদ (সা.)।

করুণা, ক্ষমাশীলতা, বিনয়, সহিষ্ণুতা, সহমর্মিতা, শান্তিবাদিতাসহ মানবীয় সব গুণের সমন্বয়ের অধিকারী ছিলেন তিনি। ৪০ বছর বয়সে নবুওয়াত অর্জন করেছিলেন মহানবী। আধ্যাত্মিকতার পাশাপাশি কর্মময়তাও ছিল তার জীবনের একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক। ইসলামের সর্বশেষ ও সর্বশ্রেষ্ঠ নবী হিসেবে বিশ্বমানবতার মুক্তি ও কল্যাণ প্রতিষ্ঠা ছিল তার ব্রত। ধর্ম-বর্ণ-সম্প্রদায় নির্বিশেষে সর্বশ্রেষ্ঠ মানবিক গুণাবলির মানুষ হিসেবে তিনি সব কালে, সব দেশেই স্বীকৃত।

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পৃথক বাণী দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ তার বাণীতে বলেন, সর্বশ্রেষ্ঠ ও সর্বশেষ নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.)-এর জন্ম ও ওফাতের স্মৃতি বিজড়িত পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সাঃ) সারা বিশ্বের মুসলমানদের জন্য অত্যন্ত পবিত্র ও মহিমান্বিত দিন। মহান আল্লাহতায়ালা হযরত মুহাম্মদকে (সা.) ‘রহমাতুল্লিল আলামীন’ তথা সমগ্র বিশ্বজগতের রহমত হিসেবে প্রেরণ করেন। দুনিয়ায় তার আগমন ঘটেছিল ‘সিরাজাম মুনিরা’ তথা আলোকোজ্জ্বল প্রদীপরূপে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক বাণীত বলেন, ধর্মীয় ও পার্থিব জীবনে মহানবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর শিক্ষা সমগ্র মানবজাতির জন্য অনুসরণীয়। মহানবী (সা.) এর সুমহান আদর্শ অনুসরণের মধ্যেই মুসলমানদের অফুরন্ত কল্যাণ, সফলতা ও শান্তি নিহিত রয়েছে। করোনা মহামারিসহ আজকের দ্বন্দ্ব-সংঘাতসময় বিশ্বে প্রিয়নবী (সা.) এর অনুপম জীবনাদর্শ, তার সর্বজনীন শিক্ষা ও সুন্নাহর অনুসরণ এবং ইবাদতের মাধ্যমেই বিশ্বের শান্তি, ন্যায় এবং কল্যাণ নিশ্চিত হতে পারে।

পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) পালনের জন্য ইসলামিক ফাউন্ডেশনের পাশাপাশি বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠন নানা কর্মসূচি নিয়েছে। এসব কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে মহানবী (সা.)-এর ওপর আলোচনা, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল। ইসলামিক ফাউন্ডেশন সারা দেশে ১৫ দিনব্যাপী ওয়াজ, মিলাদ ও দোয়া মাহফিল, সেমিনার ও ইসলামি সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে।

আরও পড়ুন:
রংপুরে নিউজবাংলা ফোরামের যাত্রা
প্রগতিশীল সাংবাদিকতার স্বাক্ষর রেখেছে নিউজবাংলা: নেত্রকোণায় অতিথিরা
কক্সবাজারে নিউজবাংলার বর্ষপূর্তির বর্ণিল আয়োজন
ভিজ্যুয়াল পিকচার নিউজে অনন্য নিউজবাংলা: যশোরে অতিথিরা
‘অল্প সময়ে পাঠকের মনে নিউজবাংলা’

শেয়ার করুন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শারীরিক প্রতিবন্ধীদের প্রীতি ক্রিকেট

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শারীরিক প্রতিবন্ধীদের প্রীতি ক্রিকেট

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শারীরিক প্রতিবন্ধীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ। ছবি: নিউজবাংলা

দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা খেলোয়াড়রা টিম-এ ও টিম-বি দলে ভাগ হয়ে খেলায় অংশ নেয়। ১০ ওভারের ম্যাচে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে সব উইকেট হারিয়ে ৬৫ রান করে টিম-এ। জবাবে ৯ ওভার চার বলে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় টিম-বি।    

শেখ রাসেল দিবস উপলক্ষে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় শারীরিক প্রতিবন্ধীদের অংশগ্রহণে প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ হয়েছে।

নিয়াজ মোহাম্মদ স্টেডিয়ামে সোমবার বেলা ১১টায় প্রতিবন্ধীদের নিয়ে কাজ করা সংস্থা- ‘ড্রিম ফর ডিসেবিলিটি’র আয়োজনে প্রীতি এই ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়।

দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে আসা খেলোয়াড়রা টিম-এ ও টিম-বি দলে ভাগ হয়ে খেলায় অংশ নেয়। ১০ ওভারের ম্যাচে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে সব উইকেট হারিয়ে ৬৫ রান করে টিম-এ। জবাবে ৯ ওভার ৪ বলে লক্ষ্যে পৌঁছে যায় টিম-বি।

আয়োজনের প্রধান অতিথি ছিলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য র. আ. ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী। খেলায় অংশ নেয়াদের মধ্যে পুরস্কার তুলে দেন জেলা প্রশাসক হায়াত উদ দৌলা খান।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার আনিসুল রহমান, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান লায়ন ফিরোজুর রহমান, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল বারী চৌধুরী মন্টুসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা।

টিম-এ ক্রিকেট দলের কোচ শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘এই ম্যাচে হার-জিত বলে কিছু নেই। এমন আয়োজনের মাধ্যমে শারীরিক প্রতিবন্ধীদের দক্ষতা ও মেধার বহিঃপ্রকাশ ঘটবে।’

ড্রিম ফর ডিসেবিলিটির প্রতিষ্ঠাতা হেদাইয়েতুল আজিজ মুন্না বলেন, ‘নিজে যখন থেকে শারীরিক প্রতিবন্ধী হয়েছি, তখন থেকে তাদের নিয়ে কাজ শুরু করি। ওদের চাঙা রাখতে নানা আয়োজনের ব্যবস্থা করি। হুইলচেয়ার ক্রিকেট ম্যাচ এসব আয়োজনের অংশ।’

জেলা প্রশাসক হায়াত উদ দৌলা খান বলেন, ‘প্রতিবন্ধীদের নিয়ে সমাজে যে ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে, এই ধরনের আয়োজনের মাধ্যমে তা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব। আগামীতে আরও বড় পরিসরে এমন আয়োজন করা হবে।’

আরও পড়ুন:
রংপুরে নিউজবাংলা ফোরামের যাত্রা
প্রগতিশীল সাংবাদিকতার স্বাক্ষর রেখেছে নিউজবাংলা: নেত্রকোণায় অতিথিরা
কক্সবাজারে নিউজবাংলার বর্ষপূর্তির বর্ণিল আয়োজন
ভিজ্যুয়াল পিকচার নিউজে অনন্য নিউজবাংলা: যশোরে অতিথিরা
‘অল্প সময়ে পাঠকের মনে নিউজবাংলা’

শেয়ার করুন

৩৫তম ফোবানা সম্মেলন নভেম্বরে

৩৫তম ফোবানা সম্মেলন নভেম্বরে

জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি সম্মেলন কক্ষে ফোবানা সম্পর্কিত এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

এবারের সম্মেলনের ভেন্যু করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ডে অবস্থিত ন্যাশনাল হারবারের বিখ্যাত গেলর্ড ন্যাশনাল রিসোর্ট অ্যান্ড কনভেনশন সেন্টারকে।

বাধাবিপত্তি আর করোনার ভয়াবহতাকে মোকাবিলা করে ওয়াশিংটনে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ঐতিহ্যবাহী ফেডারেশন অব বাংলাদেশি অ্যাসোসিয়েশন ইন নর্থ আমেরিকা (ফোবানা) সম্মেলন।

নভেম্বরের ২৬ তারিখে শুরু হবে তিন দিনব্যাপী ৩৫তম এই সম্মেলন। এটির আয়োজক আমেরিকান বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশিপ সোসাইটি (এবিএফএস)।

এবারের সম্মেলনের ভেন্যু করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের মেরিল্যান্ডে অবস্থিত ন্যাশনাল হারবারের বিখ্যাত গেলর্ড ন্যাশনাল রিসোর্ট অ্যান্ড কনভেনশন সেন্টারকে।

সম্মেলনের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে ‘অদম্য বাংলাদেশে অবাক বিশ্ব’।

রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবের ভিআইপি সম্মেলন কক্ষে এ সম্পর্কিত এক সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

ফোবানা সম্মেলনের সদস্যসচিব শিব্বীর আহমেদের সঞ্চালনায় সংবাদ সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন এবারের ফোবানা সম্মেলনের কনভেনার জি আই রাসেল।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ফোবানা চেয়ারম্যান জাকারিয়া চৌধুরী, স্বাগতিক কমিটির নিরাপত্তাবিষয়ক সাবকমিটির চেয়ারপারসন দেওয়ান জমিরসহ ফোবানার অন্য নেতারা।

বিশ্বে ফোবানা নামটি একটি ‘ব্র্যান্ড’ উল্লেখ করে সংবাদ সম্মেলনে সদস্যসচিব শিব্বীর আহমেদ বলেন, ‘৩৫ বছর ধরে এই সংগঠনটি উত্তর আমেরিকার বিভিন্ন শহরে বাংলাদেশিদের মিলনমেলার আয়োজন করে আসছে। এবারও এর ব্যতিক্রম নয়।’

তিনি বলেন, ‘১৯৮৭ সালে ওয়াশিংটন ডিসিতে বিশ্বব্যাংকের একটি ছোট অডিটরিয়ামে অত্যন্ত ছোট পরিসরে যে ফোবানার জন্ম হয়েছিল, সেই ফোবানার ৩৫তম আসর আজ একই শহরের সবচেয়ে বড় বিলাসবহুল ও ব্যয়বহুল সেন্টারে অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে।’

সম্মেলনে দেশ ও প্রবাসের লেখক, সাংবাদিক, বুদ্ধিজীবী, শিল্পীসহ গুণিজনরা অংশ নেবেন বলে জানান ফোবানার কনভেনার জি আই রাসেল।

তিনি বলেন, ‘৩৫তম ফোবানার অতিথি তালিকায় যেসব বিশিষ্ট ব্যক্তিকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে, তাদের মধ্যে রয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন, স্টেট মিনিস্টার শাহরিয়ার আলম, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সিকিউরিটি এক্সচেঞ্জ কমিশন চেয়ারম্যান ড. শিবলী রুবায়েত উল ইসলাম, যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত শহিদুল ইসলাম, দুবাইয়ের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মাহতাবুর রহমান, বাংলাদেশ প্রতিদিন সম্পাদক নইম নিজাম, ভোরের কাগজ সম্পাদক শ্যামল দত্ত, জাতীয় প্রেস ক্লাব সভাপতি ফরিদা ইয়াসমিন, অনন্যা প্রকাশনীর মনিরুল হক, ডিবিসি নিউজের সিইও মনজুরুল ইসলাম, সময় টেলিভিশন ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও আহমেদ জোবায়ের, চ্যানেল আই প্রধান ফরিদুর রেজা সাগর প্রমুখ।

এ ছাড়াও সংস্কৃতিবিষয়ক মন্ত্রী, বাণিজ্যবিষয়ক মন্ত্রী, শিক্ষাবিষয়ক মন্ত্রীকে সম্মেলনে আমন্ত্রণ জানানোর প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

কনভেনার রাসেল জানান, সম্মেলনের প্রস্তুতি প্রায় শেষ। তিন দিনব্যাপী এই সম্মেলনে ফ্যাশন শো, মিস ফোবানা, ম্যাগাজিন, বিজনেস লাঞ্চ, বইমেলা, মিউজিক আইডল, ড্যান্স আইডল, সেমিনার, ইয়ুথ ফোরাম, ইন্টারফেইথ ডায়ালগসহ নানা ইভেন্টের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীর বিশেষ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে নৃত্যশিল্পী সাদিয়া ইসলাম মৌ এবং ওয়ার্দা রিহ্যাব অংশগ্রহণ করবেন।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পর্বে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পী সাবিনা ইয়াসমিন, জেমস, তাহসান খান, হৃদয় খান, শফি মণ্ডল, লায়লাসহ জনপ্রিয় শিল্পীদের আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

এ ছাড়া বৃহত্তর ওয়াশিংটন ও উত্তর আমেরিকার একঝাঁক শিল্পী ৩৫তম ফোবানা সম্মেলনে অংশগ্রহণ করবেন বলেও জানান রাসেল।

এ ছাড়া ২৭ নভেম্বর বিজনেস নেটওয়ার্ক লাঞ্চ অনুষ্ঠিত হবে। এই লাঞ্চে দেশের ও প্রবাসের শীর্ষ ব্যবসায়ী নেতারা অংশগ্রহণ করবেন।

আরও পড়ুন:
রংপুরে নিউজবাংলা ফোরামের যাত্রা
প্রগতিশীল সাংবাদিকতার স্বাক্ষর রেখেছে নিউজবাংলা: নেত্রকোণায় অতিথিরা
কক্সবাজারে নিউজবাংলার বর্ষপূর্তির বর্ণিল আয়োজন
ভিজ্যুয়াল পিকচার নিউজে অনন্য নিউজবাংলা: যশোরে অতিথিরা
‘অল্প সময়ে পাঠকের মনে নিউজবাংলা’

শেয়ার করুন