অ্যাপেক্স কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

অ্যাপেক্স কারখানার আগুন নিয়ন্ত্রণে

ফাইল ছবি

ডিইপিজেড ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘প্রথমে চারটি ইউনিট কাজ শুরু করে। আগুনের তীব্রতা বেশি হওয়ায় আরও দুই ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে যোগ দেয়। ফায়ার সার্ভিসের ৬ ইউনিটের প্রায় দেড় ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।’

সাভারের আশুলিয়া অ্যাপেক্স কোম্পানির কারখানায় লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছে ফায়ার সার্ভিস।

জামগড়া এলাকার লিয়াকত আলী সড়ক এলাকায় ফ্যাশন ফোরাম কারখানার সামনে অ্যাপেক্সের ফোম তৈরির কারখানায় রোববার রাত সাড়ে ৩টার দিকে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

ডিইপিজেড ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার জাহাঙ্গীর আলম সোমবার সকালে এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, ‘রাত সাড়ে ৩টার দিকে খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থলে যাই। তখন কারখানায় বন্ধ ছিল। কেউ না থাকায় আমরা তালা ভেঙে কারখানায় ঢুকি।

‘প্রথমে ডিইপিজেড ফায়ার সার্ভিসের চারটি ইউনিট কাজ শুরু করে। আগুনের তীব্রতা বেশি হওয়ায় ধামরাই স্টেশনের আরও দুই ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে যোগ দেয়। ফায়ার সার্ভিসের ৬ ইউনিটের প্রায় দেড় ঘণ্টার চেষ্টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।’

জাহাঙ্গীর আলম আরও বলেন, ‘কারখানাটি সেমিপাকা হওয়ায় নিমিষেই আগুন ছড়িয়ে পড়ে। শর্টসার্কিট থেকেই আগুনের সূত্রপাত হয়েছিল।’

‘অগ্নিকাণ্ডে কারখানাটির প্রায় ২০ লাখ টাকা ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে কারখানার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা আসলে ক্ষয়ক্ষতির সঠিক পরিমাণ জানা যাবে।’

আরও পড়ুন:
‘আগুন আমার সব শেষ করে দিল’
ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে আগুন
বাঁধা ছিল শিকলে, পুড়ে মরল আগুনে
গোয়ালঘরে আগুনে পুড়ল ৫ গরু
২ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে প্লাইউড ফ্যাক্টরির আগুন

শেয়ার করুন

মন্তব্য

৯ পৌর ও রংপুর-রাজশাহীর ইউপিতে নৌকা পেলেন যারা

৯ পৌর ও রংপুর-রাজশাহীর ইউপিতে নৌকা পেলেন যারা

ফাইল ছবি

তৃতীয় ধাপে ১ হাজার ৭টি ইউনিয়ন এবং ১০টি পৌরসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ করা হবে আগামী ২৮ নভেম্বর।

তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের ১৬ জেলায় মনোনয়ন চূড়ান্ত করেছে আওয়ামী লীগ। এ ছাড়া অন্তত ৯টি পৌরসভায়ও প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে দলটি।

বৃহস্পতিবার বিকালে গণভবনে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভায় এসব প্রার্থী চূড়ান্ত করা হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিষ্টার বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

তৃতীয় ধাপে ১ হাজার ৭টি ইউনিয়ন এবং ১০টি পৌরসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ করা হবে আগামী ২৮ নভেম্বর।

৯ পৌরসভায় আওয়ামী লীগের চূড়ান্ত প্রার্থীদের মধ্যে রয়েছেন রংপুরের পীরগঞ্জে আবু ছালেহ মো. তাজিমুল ইসলাম, নীলফামারী সদর পৌরসভায় দেওয়ান কামাল আহমেদ, পাবনার বেড়ায় এস এম আসিফ শামস, পটুয়াখালীর গলাচিপায় আহসানুল হক তুহিন, টাঙ্গাইলের ঘাটাইলে শহীদুজ্জামান খান, গাজীপুরের কালিয়াকৈরে মো. রেজাউল করিম, মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে সৈয়দ মো. মনসুরুল হক, লক্ষ্মীপুর সদর পৌরসভায় মোজাম্মেল হায়দার মাসুম ভূঁঞা, নোয়াখালীর সেনবাগে মো. আবু জাফর টিপু।

তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের ১৬ জেলায় আওয়ামী লীগের চূড়ান্ত প্রার্থীদের তালিকা দেওয়া হলো- তালিকা

আরও পড়ুন:
‘আগুন আমার সব শেষ করে দিল’
ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে আগুন
বাঁধা ছিল শিকলে, পুড়ে মরল আগুনে
গোয়ালঘরে আগুনে পুড়ল ৫ গরু
২ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে প্লাইউড ফ্যাক্টরির আগুন

শেয়ার করুন

‘মনের ক্ষত কি শুকাবে কাকা’

‘মনের ক্ষত কি শুকাবে কাকা’

সরকারি সহায়তায় ঠিক করা হচ্ছে রংপুরে সাম্প্রদায়িক হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িঘর। ছবি: নিউজবাংলা

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান জানান, হিন্দুপল্লিতে হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত ৬১ পরিবারকে ১০১ বান্ডিল ঢেউটিন দেয়া হয়েছে। প্রয়োজন অনুযায়ী ৬১ পরিবারের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে ১৩ লাখ টাকা। এ ছাড়া শুকনা খাবার, কম্বল, শাড়ি ও লুঙ্গি দেয়া হয়েছে। তাদের সার্বক্ষণিক খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে। 

‘ঘরে যা ছিল সব ভেঙে গেছে, পুড়ে গেছে। এখন টিন দিয়েছে, টাকা দিয়েছে, তা দিয়ে ঘর বানাইছি, ঠিকঠাক করেছি। যতই বলেন কাকা, ওই কথা কি ভোলা যায়, মনের ক্ষত কি শুকাবে?’

কথাগুলো রংপুরের পীরগঞ্জের রামনাথপুর উত্তর হিন্দুপাড়ার রুবিনাস চন্দ্র দাসের। গত রোববার রাতে সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় তার বাড়িঘর পুড়িয়ে দেয়া হয়।

শুধু রুবিনাস নয়, পাঁচ দিন ধরে ভয়াবহ মানসিক যন্ত্রণার মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন পুরো হিন্দুপাড়ার বাসিন্দারা। সরকারি সহায়তায় বাড়িঘর ঠিক করতে পারলেও ভীতি কাটেনি তাদের এখনও।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বাড়িঘরগুলোতে এখনও পোড়া দাগ রয়েছে। পুড়ে যাওয়া গাছগুলো শুকিয়ে কাঠ হয়ে গেছে।

তার মধ্যেই চলছে ক্ষতিগ্রস্তদের বাড়িঘর মেরামতের কাজ। এতে কিছুটা স্বাভাবিক হতে শুরু করেছে সেখানকার পরিবেশ পরিস্থিতি। তবে এখনও আইশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নিরাপত্তার চাদরে রয়েছে হিন্দুপল্লিটি।

‘মনের ক্ষত কি শুকাবে কাকা’

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিজানুর রহমান জানান, ওই হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত ৬১ পরিবারকে ১০১ বান্ডিল ঢেউটিন দেয়া হয়েছে। প্রয়োজন অনুযায়ী ৬১ পরিবারের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে ১৩ লাখ টাকা। এ ছাড়া শুকনা খাবার, কম্বল, শাড়ি ও লুঙ্গি দেয়া হয়েছে। তাদের সার্বক্ষণিক খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে।

পল্লির অনিতা রানী বলেন, ‘সংসারে ৩০ হাজার টাকা আচিল। দেড় ভরি সোনা ছিল। ২০ হাজার ট্যাকা পাইচি। কপাল তো নিয়ে যায় নাই…। ঘরটা ঠিক করোচি। টিওনো (ইউএনও) স্যার আসি কইচে ঘর ঠিক করবের। ঠিক করছি।’

সুপথ বলেন, ‘সকালে কামলা নিচি, বাঁশ কিনচি। ঘর ঠিক করোছি। এ্যালা ভালো আচি। ভয়টয় নাগোচে না।’

ওপিন চন্দ্র বলেন, ‘বাড়িঘর সরকারে ঠিক করি দেওচে, হামরা আস্তে আস্তে ঠিক করমো। অনেকে আসোচে, মেলা কিচু দেওচে।’

‘মনের ক্ষত কি শুকাবে কাকা’
দুর্বৃত্তদের দেয়া আগুনে পুড়ে গেছে গাছও। ছবি: নিউজবাংলা

পল্লিবাসী জানিয়েছেন, সরকারিভাবে বাড়িঘর মেরামত করতে শুক্রবার দেড় শ শ্রমিক কাজ করছেন।

ওপিন চন্দ্রের বাড়ি মেরামত করছিলেন আব্দুর রহিম। তিনি জানান, তারা ৪৯ জন একসঙ্গে কাজ করছেন। অন্য পাশে আরও দুটি দল রয়েছে।

রামনাথপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাদেকুল ইসলাম জানান, এখন কোনো অসুবিধা নেই। প্রতিদিন বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা ও ব্যক্তি উদ্যোগেও সহযোগিতা করা হচ্ছে।

রংপুরের সহকারী পুলিশ সুপার কামরুজ্জামান জানান, হিন্দুপল্লিতে হামলার ঘটনায় তিনটি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়েছে ৫৩ জনকে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। ঘটনাস্থলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী রয়েছে। এখন কোনো সমস্যা নেই।

আরও পড়ুন:
‘আগুন আমার সব শেষ করে দিল’
ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে আগুন
বাঁধা ছিল শিকলে, পুড়ে মরল আগুনে
গোয়ালঘরে আগুনে পুড়ল ৫ গরু
২ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে প্লাইউড ফ্যাক্টরির আগুন

শেয়ার করুন

জমি নিয়ে বিরোধে খুন

জমি নিয়ে বিরোধে খুন

প্রতীকী ছবি।

বগুড়া সদর থানার ওসি সেলিম রেজা জানান, খাস জমিতে খড়ের পালা তোলা নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে জাহেদুরের সঙ্গে একই গ্রামের সজিব হাসানের বিরোধ চলছিল। বিবদমান দুই পক্ষের বসতবাড়ির পাশে হওয়ায় জমিটি ভোগদখল করতে চাইছিলেন দুইজনই।  

বগুড়ায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের ছুরি হামলায় এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত চারজন হাসপাতালে ভর্তি।

সদর উপজেলার লাহিড়ীপাড়া ইউনিয়নের রহমতবালা গ্রামে শুক্রবার বেলা ১১টার দিকে সংঘর্ষ হয়।

নিহতের নাম জাহেদুর রহমান। ৪০ বছরের জাহেদুর সিএনজি অটোরিকশার চালক।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বগুড়া সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সেলিম রেজা।

স্থানীয়দের বরাতে তিনি জানান, খাস জমিতে খড়ের পালা তোলা নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে জাহেদুরের সঙ্গে একই গ্রামের সজিব হাসানের বিরোধ চলছিল। বিবদমান দুই পক্ষের বসতবাড়ির পাশে হওয়ায় জমিটি ভোগদখল করতে চাইছিলেন দুইজনই।

বিরোধ নিরসনে শুক্রবার সার্ভেয়ার ডাকা হয়। মাপজোকের সময় ফের বাগ্‌বিতণ্ডায় জড়ায় দুই পরিবার। এ সময় জাহেদুরকে পেছন থেকে ছুরি দিয়ে আঘাত করেন সজিব।

এর পরপরই সংঘর্ষে জড়ায় দুই পক্ষ। এতে আহত চারজনকে বগুড়া টিএমএসএস মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান জাহেদুর।

ওসি সেলিম বলেন, ‘এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। অভিযুক্ত সজিবকে ধরতে অভিযান চলছে।’

আরও পড়ুন:
‘আগুন আমার সব শেষ করে দিল’
ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে আগুন
বাঁধা ছিল শিকলে, পুড়ে মরল আগুনে
গোয়ালঘরে আগুনে পুড়ল ৫ গরু
২ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে প্লাইউড ফ্যাক্টরির আগুন

শেয়ার করুন

কৃষককে কুপিয়ে হত্যা, আটক ১

কৃষককে কুপিয়ে হত্যা, আটক ১

পুলিশ জানায়, ৬৫ বছর বয়সী নওশের দুপুরে বিলের মধ্যে ধান গাছের পরিচর্যা করছিলেন। ফারুক শেখ সেখানে গিয়ে নওশেরকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মুখসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে পালিয়ে যান। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

নড়াইলের লোহাগড়ায় নওশের শেখ নামের এক কৃষককে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে।

উপজেলার সরুশুনা গ্রামে শুক্রবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় অভিযুক্ত ফারুক শেখকে বিকেলে চরশামুকখোলা গ্রাম থেকে আটক করেছে পুলিশ।

পরিবারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, ৬৫ বছর বয়সী নওশের দুপুরে বিলের মধ্যে ধান গাছের পরিচর্যা করছিলেন। ফারুক শেখ সেখানে গিয়ে নওশেরকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মুখসহ শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে পালিয়ে যান। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। সরুশুনা গ্রামের মতিয়ার মোল্যা ঘটনা দেখে নওশেরের পরিবারকে জানান।

এলাকাবাসী জানায়, অভিযুক্ত ফারুক শেখ বিভিন্ন পেশার মানুষকে কোনো কারণ ছাড়াই মারধর করতেন।

এ ব্যাপারে লোহাগড়া থানার ওসি শেখ আবু হেনা মিলন জানান, ফারুক মানসিক সমস্যাগ্রস্ত বলে দাবি করেছে তার পরিবার। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ নড়াইল সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে জানান ওসি।

আরও পড়ুন:
‘আগুন আমার সব শেষ করে দিল’
ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে আগুন
বাঁধা ছিল শিকলে, পুড়ে মরল আগুনে
গোয়ালঘরে আগুনে পুড়ল ৫ গরু
২ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে প্লাইউড ফ্যাক্টরির আগুন

শেয়ার করুন

ট্রেনে কাটা পড়ে গেল যুবকের প্রাণ

ট্রেনে কাটা পড়ে গেল যুবকের প্রাণ

গফরগাঁও রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির এসআই শাহাদাত হোসেন বলেন, ‘সকাল ৯টার দিকে ওই রেললাইনের পাশে মরদেহের কিছু অংশ দেখতে পায় স্থানীয়রা। পরে ফাঁড়িতে খবর দিলে আমরা এসে কিছু মাংসপিণ্ড উদ্ধার করি। পরে রেললাইনের আশেপাশের ২০০ মিটার এলাকা থেকে মরদেহের টুকরাগুলো উদ্ধার করা হয়েছে।’

ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে ট্রেনে কাটা পড়া অজ্ঞাতপরিচয় এক যুবকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

উপজেলার রৌহা গ্রামের মীর বাজার এলাকার রেললাইনের পাশ থেকে শুক্রবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে মরদেহেটি উদ্ধার করা হয়।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন গফরগাঁও রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক (এসআই) শাহাদাত হোসেন।

তিনি বলেন, ‘সকাল ৯টার দিকে ওই রেললাইনের পাশে মরদেহের কিছু অংশ দেখতে পায় স্থানীয়রা। পরে ফাঁড়িতে খবর দিলে আমরা এসে কিছু মাংসপিণ্ড উদ্ধার করি। পরে রেললাইনের আশেপাশের ২০০ মিটার এলাকা থেকে মরদেহের টুকরাগুলো উদ্ধার করা হয়েছে।’

পুলিশের এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘ধারণা করা হচ্ছে, রাতের কোনো এক সময় এই লাইনে চলা কোনো ট্রেন থেকে নিচে পড়ে গিয়েছিলেন ওই ব্যক্তি। পরে ট্রেনটি তার শরীর খণ্ডবিখণ্ড করে দেয়। তার বয়স ত্রিশ থেকে পয়ত্রিশ বছরের মধ্যে।’

ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। তার পরিচয় শনাক্তের চেষ্টা চলছে বলেঅ জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

এর আগে বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে রেললাইন পার হওয়ার সময় ট্রেনে কাটা পড়ে ফারুক মিয়া নামের এক রিকশাচালকের মৃত্যু হয়েছে। তিনি পৌর শহরের ষোলহাসিয়া এলাকার বাসিন্দা। পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই মরদেহ হস্তান্তর করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
‘আগুন আমার সব শেষ করে দিল’
ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে আগুন
বাঁধা ছিল শিকলে, পুড়ে মরল আগুনে
গোয়ালঘরে আগুনে পুড়ল ৫ গরু
২ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে প্লাইউড ফ্যাক্টরির আগুন

শেয়ার করুন

বীর মুক্তিযোদ্ধার দোকান দখল করে ‘নির্বাচনি ক্যাম্প’

বীর মুক্তিযোদ্ধার দোকান দখল করে ‘নির্বাচনি ক্যাম্প’

বীর মুক্তিযোদ্ধার এই দোকানঘরটি দখলে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। ছবি: নিউজবাংলা

অভিযোগকারী নুরুল ইসলাম মাস্টারের ভাই হুমায়ূন কবির উপজেলার সাধুরপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়নের আশায় আছেন। দোকান দখলের অভিযোগ উঠা ওই ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান ও আসন্ন নির্বাচনের প্রার্থী মাহমুদুল আলম বাবুও আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী।

জামালপুরের বকশিগঞ্জে বীর মুক্তিযোদ্ধার দোকান দখল করে নির্বাচনি ক্যাম্প স্থাপনের অভিযোগ উঠেছে এক ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

তবে ওই চেয়ারম্যানের দাবি, তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেন না। অভিযোগকারী দোকান মালিকের ভাইও চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করতে চান। তাই তার নামে এমন অভিযোগ আনা হয়েছে।

অভিযোগকারী নুরুল ইসলাম মাস্টারের ভাই হুমায়ূন কবির উপজেলার সাধুরপাড়া ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়নের আশায় আছেন। দোকান দখলের অভিযোগ উঠা ওই ইউপির বর্তমান চেয়ারম্যান ও আসন্ন নির্বাচনের প্রার্থী মাহমুদুল আলম বাবুও আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী।

অভিযোগকারী নুরুল ইসলাম মাস্টার জানান, কামালেরবার্ত্তী বাজারে আধাপাকা ঘরটিতে সরকারিবিধি মোতাবেক ১৯৯৭ সাল থেকে মুদি দোকান চালিয়ে আসছিলেন তিনি। অসুস্থ থাকায় গত ৬ মাস ধরে দোকানটি বন্ধ রেখেছেন তিনি। এই সুযোগে বুধবার ভোরে মাহমুদুল আলম বাবু ৫০ থেকে ৬০ জন লোক নিয়ে দোকানের তালা ভেঙে দখল করে নির্বাচন অফিস স্থাপন করেন।

তিনি আরও জানান, দোকান দখলের খবর পাওয়ার পর ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি বেগতিক দেখে ফিরে আসেন। দোকানে অল্প কিছু মালপত্র থাকায় বেশি ক্ষতি হয়নি।

বীর মুক্তিযোদ্ধার দোকান দখল করে ‘নির্বাচনি ক্যাম্প’

ঘটনার দিনই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুনমুন জাহান লিজার কাছে লিখিত অভিযোগ করেন বলেও জানান এ বীর মুক্তিযোদ্ধা।

এ বিষয়ে চেয়ারমান মাহমুদুল আলম বাবু নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ঘরটি সরকারের। মুক্তিযোদ্ধা অসুস্থ থাকায় গত ৪-৫ বছর ধরে সেটি বন্ধ। ঘরের চাল, দেয়াল সবকিছু নষ্ট হয়ে গেছে।

‘বুধবার সকালে স্থানীয় কয়েকজন যুবক ঘরটি খুলে ইউনিয়ন তাঁতী লীগের একটি অফিস দেয়। আমি শোনার পর ওই যুবকদেরকে শাসন করি। তাদের এই কাজ করা ঠিক হয়নি।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমি গত দুই দিন ধরে ভোরে জামালপুর যাই, মধ্য রাতে ফিরি। এলাকার সবাই জানে আমি কেমন। সত্য ঘটনা হচ্ছে, মুক্তিযোদ্ধার ছোট ভাই চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ায় রাজনৈতিক কারণে আমার নামে অভিযোগ করেছে।’

‘নির্বাচনই শুরু হয় নাই, আমি এখনও মনোনয়ন পাইলাম না। তাহলে কীভাবে নির্বাচনের অফিস দিব।’

এসব বিষয়ে বকশিগঞ্জের ইউএনও মুনমুন জাহান লিজা বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধা নুরুল ইসলাম মাস্টারের অভিযোগ পাওয়ার পর দোকানটি উপজেলা প্রশাসন নিজেদের হেফাজতে নিয়েছে। বিষয়টি তদন্তের পর দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

আরও পড়ুন:
‘আগুন আমার সব শেষ করে দিল’
ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে আগুন
বাঁধা ছিল শিকলে, পুড়ে মরল আগুনে
গোয়ালঘরে আগুনে পুড়ল ৫ গরু
২ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে প্লাইউড ফ্যাক্টরির আগুন

শেয়ার করুন

কাজ শুরুর সিদ্ধান্ত হয়নি তিস্তা মেগা প্রকল্পের: ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

কাজ শুরুর সিদ্ধান্ত হয়নি তিস্তা মেগা প্রকল্পের: ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

কুড়িগ্রামে তিস্তা নদীর ভাঙনকবলিত এলাকা পরিদর্শনে যান দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান। ছবি: নিউজবাংলা

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রকল্পের ডিজাইন ও প্রজেক্ট প্রোফাইল কমপ্লিট করা হয়েছে। আপনারা জানেন প্রজেক্টটি অনেক বড়। এই অঞ্চলের (উত্তরাঞ্চল) তিস্তাপারের মানুষজনের জীবনমানের উন্নতি হবে। তবে কবে থেকে কাজ শুরু হবে, তার সিদ্ধান্ত হয় নাই।’

তিস্তা মেগা প্রকল্পের জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কাজ করছেন। তবে প্রকল্পের পরিধি বড় হওয়ায় কাজ শুরুর চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি বলে জানিয়েছেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘প্রকল্পের ডিজাইন ও প্রজেক্ট প্রোফাইল কমপ্লিট করা হয়েছে। আপনারা জানেন প্রজেক্টটি অনেক বড়। এই অঞ্চলের (উত্তরাঞ্চল) তিস্তাপারের মানুষজনের জীবনমানের উন্নতি হবে। তবে কবে থেকে কাজ শুরু হবে, তার সিদ্ধান্ত হয় নাই।’

কুড়িগ্রামের রাজারহাটের ঘড়িয়াল ডাঙ্গা ইউনিয়নের গতিয়াশাম এলাকায় তিস্তা নদীর ভাঙনকবলিত এলাকা পরিদর্শন শেষে শুক্রবার সকালে সাংবাদিকদের এসব কথা জানান প্রতিমন্ত্রী এনামুর।

তিনি আরও বলেন, ‘ভাঙনকবলিত কুড়িগ্রামসহ চারটি জেলায় আকস্মিক বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। সরকার বন্যার্ত ও ভাঙনকবলিতদের দুর্দশা লাঘবে কাজ করছে। এই চার জেলার প্রতিটিতে ৫০ টন চাল, পাঁচ লাখ টাকা, চার হাজার শুকনা খাবারের প্যাকেট, পশুখাদ্যের জন্য আরও দুই লাখ টাকা এবং এক শ বান্ডিল করে ঢেউটিন বরাদ্দ করা হয়েছে। পরবর্তীতে বন্যার্ত ও নদীভাঙনের শিকার প্রতিটি পরিবারের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

কাজ শুরুর সিদ্ধান্ত হয়নি তিস্তা মেগা প্রকল্পের: ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী
ক্ষতিগ্রস্ত ৫০টি পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করেন দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী এনামুর রহমান

পরিদর্শন শেষে গতিয়াশাম এলাকার সরিষাবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় মাঠে এক আলোচনা সভায় যান প্রতিমন্ত্রী।

সেখানে উপস্থিত ছিলেন কুড়িগ্রাম-২ আসনের সংসদ সদস্য পনির উদ্দিন আহমেদ, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. মহসীন, কুড়িগ্রামের জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম, জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) সৈয়দা জান্নাত আরা, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান জাফর আলী, রাজারহাট উপজেলা পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান জাহিদ সোহরাওয়ার্দী বাপ্পি, উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) নূরে তাসনীম এবং ঘড়িয়াল ডাঙা ইউপি চেয়ারম্যান রবীন্দ্রনাথ কর্মকার।

সভা শেষে ওই এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত ৫০টি পরিবারের মাঝে ১০ কেজি করে চাল, এক কেজি করে চিড়া এবং আধা কেজি করে ডালসহ বিভিন্ন ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

তিস্তা নদীর ভাঙনে রাজারহাটের ঘড়িয়ালডাঙ্গা ইউনিয়নের ৮৬৫টি, ছিনাইয়ের ১২২টি এবং বিদ্যানন্দের ৩০টি পরিবার ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

আরও পড়ুন:
‘আগুন আমার সব শেষ করে দিল’
ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে আগুন
বাঁধা ছিল শিকলে, পুড়ে মরল আগুনে
গোয়ালঘরে আগুনে পুড়ল ৫ গরু
২ ঘণ্টার চেষ্টায় নিয়ন্ত্রণে প্লাইউড ফ্যাক্টরির আগুন

শেয়ার করুন