অবৈধ ভিওআইপি: চক্রের ৪ সদস্য গ্রেপ্তার

অবৈধ ভিওআইপি: চক্রের ৪ সদস্য গ্রেপ্তার

অবৈধ ভিওআইপি কারবারের সঙ্গে জড়িত চার সদস্যকে আন্তর্জাতিক কলিং কার্ডসহ গ্রেপ্তার করা হয়। ছবি: নিউজবাংলা

সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব-১০-এর অধিনায়ক (সিও) অতিরিক্ত ডিআইজি মো. মাহফুজুর রহমান বলেন, ‘ভিওআইপির সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা বিটিআরসি থেকে লাইসেন্স ছাড়াই অবৈধভাবে কাজ চালিয়ে আসছিল। যে বিপুল পরিমাণ আন্তর্জাতিক কলিং কার্ড পাওয়া গেছে তা যদি ব্যবহার হতো, তাহলে সরকার আনুমানিক ১৯ কোটি ৪৭ লাখ ৪৭ হাজার ৭৫০ টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হতো।’

রাজধানীর ফকিরাপুলের গরমপানির গলি এলাকায় অভিযান চালিয়ে অবৈধ ভিওআইপি কারবারের সঙ্গে জড়িত ৪ সদস্যকে আন্তর্জাতিক কলিং কার্ডসহ গ্রেপ্তার করা হয়।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টায় র‍্যাব-১০ ও বিটিআরসির সমন্বয়ে যৌথ অভিযানে তাদের গ্রেপ্তার করা হয়।

চারজন হলেন মো. আমির হামজা, মো. আলমগীর হোসেন, মো. শামীম মিয়া ও মো. সাগর মিয়া।

এ সময় তাদের কাছ থেকে ভিওআইপি কারবারে ব্যবহৃত ২টি সিপিইউ, ২টি মনিটর, ১টি মাউস, ১টি কী-বোর্ড, ২টি প্রিন্টার, ২টি টোনার, ১টি পেপার কাটার মেশিন, ১টি ডিজিটাল ওজন মেশিন ও ৪টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করা হয়।

র‍্যাব জানায়, আসামিরা অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা চক্রের সদস্য। তারা দীর্ঘ সাত-আট বছর ধরে সরকারকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে ভিওআইপি এবং আন্তর্জাতিক পেমেন্ট ও রিচার্জের কাজ চালিয়ে আসছিল। তাদের কাছ থেকে ভয়েস পাকিস্তান, পাকিস্তান ভয়েস, কাতার এক্সপ্রেস, এশিয়ান টেলিকম, এনএস এক্সপ্রেস, প্রবাসী কার্ড, স্বপন টেল, সুপার কার্ড ও কান্ডার টু-সহ মোট ১০৭টি কলিং কার্ড ক্লাইন্টের আনুমানিক দেড় লাখের বেশি কুপন পাওয়া গেছে।

বৃহস্পতিবার মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে র‍্যাব-১০-এর অধিনায়ক (সিও) অতিরিক্ত ডিআইজি মো. মাহফুজুর রহমান বলেন, ভিওআইপির সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) থেকে লাইসেন্স ছাড়াই অবৈধভাবে কাজ চালিয়ে আসছিল।

তিনি বলেন, যে বিপুল পরিমাণ আন্তর্জাতিক কলিং কার্ড পাওয়া গেছে তা যদি ব্যবহার হতো তাহলে বাংলাদেশ সরকার আনুমানিক ১৯ কোটি ৪৭ লাখ ৪৭ হাজার ৭৫০ টাকার রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হতো।

র‍্যাব-১০-এর অধিনায়ক আরও বলেন, ‘এই অসাধু ভিওআইপি ব্যবসায়ীরা প্রচলিত সফটওয়্যার-ভিত্তিক সুইচের মাধ্যমে টেলিযোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপন করে অবৈধভাবে আন্তর্জাতিক কল রাউট করত ও স্থাপনা পরিচালনা করার মাধ্যমে টেলিযোগাযোগ সেবা দেয়ার ক্ষেত্রে প্রদেয় রাজস্ব ও চার্জ ফাঁকি দেয়ার উদ্দেশে যান্ত্রিক, ভার্চুয়াল এবং সফটওয়্যার-ভিত্তিক কৌশল অবলম্বন করে অবৈধভাবে আন্তর্জাতিক পেমেন্ট ও রিচার্জ সেবা প্রদান করত।’

‘গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তিরা মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে প্রচলিত ডায়ালার অ্যাপ কলের বাংলাদেশে অবৈধভাবে রাউট করত ও ওই অ্যাপে রিচার্জের জন্য বিভিন্ন অঙ্কের কলিং কার্ড বিক্রি করত। এ ছাড়া তারা অবৈধভাবে আন্তর্জাতিক পেমেন্ট ও রিচার্জ সেবা প্রদান করে হুন্ডির মাধ্যমে অর্থ লেনদেন করত।’

র‍্যাব জানায়, ‘গ্রেপ্তারকৃত ব্যক্তিরা অবৈধ ভিওআইপি চক্রের সদস্য। তারা দীর্ঘ ৭ থেকে ৮ বছর ধরে সরকারকে রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে অবৈধভাবে ভিওআইপি ও আন্তর্জাতিক পেমেন্ট ও রিচার্জের ব্যবসা চালিয়ে আসছিল। প্রিন্টিং প্রেসে ভয়েস পাকিস্তান, পাকিস্তান ভয়েস, কাতার এক্সপ্রেস, এশিয়ান টেলিকম, এনএস এক্সপ্রেস, প্রবাসী কার্ড, স্বপন টেল, সুপার কার্ড ও কাতার টুসহ মোট ১০৭টি কলিং কার্ড ক্লাইন্টের দেড় লাখের বেশি কুপন পাওয়া গেছে।’

চক্রটি এখন পর্যন্ত প্রযুক্তি ব্যবহার করে কত টাকা হাতিয়ে নিয়েছে- এমন প্রশ্নের জবাবে র‍্যাবের এই কর্মকর্তা বলেন, ‘চক্রটি দীর্ঘদিন ধরে অবৈধ ভিওআইপির ব্যবসা করে আসছিল। তারা ১৯ কোটি টাকার রাজস্ব থেকে সরকারকে বঞ্চিত করতে চেয়েছিল। তবে তার আগেই আমরা তাদের গ্রেপ্তার করি। তারা হুন্ডির মাধ্যমে ও অসাধু ব্যবসায়ীদের মাধ্যমে এসব ব্যবসা পরিচালনা করত। তাদের রিমান্ডে নেয়ার পর বিস্তারিত জানা যাবে।’

সংবাদ সম্মেলনে বিটিআরসির এনফোর্সমেন্ট অ্যান্ড ইনস্পেকশন বিভাগের ডেপুটি ডিরেক্টর এস এম গোলাম সারওয়ার উপস্থিত ছিলেন।

বিটিআরসির এই কর্মকর্তা বলেন, বিটিআরসির চোখ ফাঁকি দিয়ে তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহার করে দীর্ঘদিন ধরে অবৈধ টেলিযোগাযোগ সেবা দিয়ে যাচ্ছিল এই চক্রটি। বিটিআরসির ব্যর্থতা এবং এখানে আমাদের কোনো কর্মকর্তা জড়িত কি না, সেই বিষয়টি সামনে আসছে।

তিনি বলেন, অবৈধ ভিওআইপির বিরুদ্ধে র‍্যাবের সঙ্গে বিটিআরসি দীর্ঘদিন ধরে কাজ করে আসছে। সেগুলো আপনারা দেখতে পারছেন, কিন্তু এর বাইরেও আমরা ধারাবাহিকভাবে অনেক কাজ করে আসছি, তবে সেগুলো ইনভিজ্যুয়াল।

বিটিআরসির এই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘প্রতি ১২ ঘণ্টা পর বিটিআরসির সেটআপ লজিক আছে সেগুলো আমরা প্রয়োগ করি। এর মধ্যে যেসব সিম সন্দেহজনক মনে হয়, সেই সিমগুলো ব্লক করে দেয়া হয়। অবৈধ ব্যবসায়ীদের সিম ব্লক করার পরে তারা নতুন নতুন সিমের স্টক আনে। এভাবে তারা তাদের অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে আসছে।

‘অবৈধ এসব ব্যবসায়ী দেশের বাইরে থেকে টেকনিক্যাল জ্ঞান অর্জন করেন। তাদের মাস্টারমাইন্ড থাকে এবং তারা টেকনিক্যাল সাপোর্ট দেন। তারা সব সময় আপডেট থাকেন এবং বিটিআরসি মডুয়েলকে কীভাবে ফাঁকি দেয়া যায়, তা এনালাইসিস করে তা ইমপ্লিমেন্ট করার চেষ্টা করেন তারা।’

অনেক সময় বিটিআরসির গ্যাপের কারণেও এই অবৈধ ভিওআইপিরা সাময়িক ব্যবসা করছে, তবে আলটিমেটটি একটি সময়ে তারা ধরা পড়ছে। আমাদের টেকনোলজি আরও আপডেট ও লজিস্টিক পরিবর্তন করতে হবে বলে যোগ করেন বিটিআরসির এনফোর্সমেন্ট অ্যান্ড ইনস্পেকশন বিভাগের ডেপুটি ডিরেক্টর এস এম গোলাম সারওয়ার।

তিনি বলেন, অবৈধ ভিওআইপি নিয়ে বিটিআরসির যেসব কর্মকর্তা কাজ করেন, তারা অবৈধ কাজে জড়িয়ে যাচ্ছেন কি না অথবা তাদের অবহেলার কারণে সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে কি না, সেগুলো মনিটর করতেও আমাদের একটি গ্রুপ কাজ করে। তবে এখানে বিটিআরসির কোনো ব্যর্থতা নেই।

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে ফের ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার
সৌদিতে বসে ভিওআইপি কারবার ঢাকায়
অবৈধ ভিওআইপি ধরতে লালমাটিয়ায় অভিযান
অবৈধ ভিওআইপি: এক চক্রেরই দিনে তিন লাখ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

এফআর টাওয়ার: চারজনের বিচার শুরু

এফআর টাওয়ার: চারজনের বিচার শুরু

অগ্নিকাণ্ডের শিকার এফআর টাওয়ার।ফাইল ছবি

২০১৯ সালের ২৮ মার্চ এফআর টাওয়ারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ২৭ নিহত হওয়ার পর এই ভবন নির্মাণে নানা অনিয়মের বিষয়গুলো বেরিয়ে আসতে থাকে।

অগ্নিকাণ্ডের শিকার রাজধানীর বনানীর এফআর টাওয়ারের নকশা জালিয়াতি মামলায় রাজউকের সাবেক চেয়ারম্যান মো. হুমায়ুন খাদেমসহ চারজনের বিচার শুরুর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

সোমবার ঢাকার বিভাগীয় বিশেষ জজ সৈয়দ কামাল হোসেন তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য আগামী ১৫ নভেম্বর দিন ঠিক করেন।

এ আদালতের পেশকার রফিকুল ইসলাম নিউজবাংলাকে এসব তথ্য জানিয়েছেন।

মামলার অপর তিন আসামি হলেন- রাজউকের ইজারা গ্রহীতা সৈয়দ মো. হোসাইন ইমাম ফারুক, রূপায়ণ হাউজিং এস্টেট লিমিটেডের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (বর্তমান চেয়ারম্যান) লিয়াকত আলী খান মুকুল ও রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের সাবেক প্রধান প্রকৌশলি সাইদুর রহমান।

এর আগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও দুদকের উপ-পরিচালক আবু বকর সিদ্দিক পাঁচ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন।

অভিযোগপত্রে বলা হয়, আসামিরা পরস্পর যোগসাজশে ইমারত বিধিমালা লঙ্ঘন এবং নকশা জালিয়াতির মাধ্যমে ১৮ তলাবিশিষ্ট এফআর টাওয়ার নির্মাণ করেছেন। ১৯৯০ সালে ১৫ তলা ভবন নির্মাণের জন্য রাজউকের অনুমোদন পান এসএমএইচআই ফারুক। পরে ১৯৯৬ সালে ১৮ তলা ভবন নির্মাণের অনুমোদন চেয়ে সংশোধিত নকশা অনুমোদনের জন্য আবেদন করেন তিনি।

সংশোধিত নকশাটি ইমারত বিধিমালা অনুযায়ী না হওয়ায় এবং প্রস্তাবিত ভবনের উচ্চতা বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের বিধিনিষেধ অনুযায়ী অনুমোদনযোগ্য নয় বলে জানিয়ে দেয়া হয়েছিল। কিন্তু তার এক মাসের মধ্যেই সংশোধন করে সেই নকশা অনুমোদন করা হয়। এ কাজে অবৈধ লেনদেন হয়েছে বলে অভিযোগপত্রে উল্লেখ আছে।

পরে ১৮ তলা ভবন নির্মাণের জন্য জমির মালিক চুক্তিবদ্ধ হন আবাসন প্রতিষ্ঠান রূপায়ন গ্রুপের সঙ্গে। রূপায়ন ওই জায়গায় অবৈধ নকশার ভিত্তিতেই ১৮ তলা ভবন নির্মাণ করে। ইমারত নির্মাণ বিধিমালা অনুসারে ভবনের দুই পাশে যে পরিমাণ জায়গা রাখার কথা ছিল, তা-ও রাখা হয়নি।

পার্কিংয়ের ক্ষেত্রেও উল্লেখিত নির্দিষ্ট পরিমাণের স্থানে রাখা হয় এক-তৃতীয়াংশ জায়গা। আবাসিক ভবন হিসেবে অনুমোদন নেয়া হলেও পুরো ভবনটি ব্যবহার হয় বাণিজ্যিক হিসেবে।

পাঁচ আসামির মধ্যে সাবেক অথরাইজড অফিসার সৈয়দ মকবুল আহমেদ মারা যাওয়ায় তাকে এই মামলা থেকে অব্যাহতি দিয়েছেন বিচারক।

২০১৯ সালের ২৮ মার্চ এফআর টাওয়ারে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ২৭ নিহত হওয়ার পর এই ভবন নির্মাণে নানা অনিয়মের বিষয়গুলো বেরিয়ে আসতে থাকে।

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে ফের ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার
সৌদিতে বসে ভিওআইপি কারবার ঢাকায়
অবৈধ ভিওআইপি ধরতে লালমাটিয়ায় অভিযান
অবৈধ ভিওআইপি: এক চক্রেরই দিনে তিন লাখ

শেয়ার করুন

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে নথি জালিয়াতির প্রধান আসামির জামিন

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে নথি জালিয়াতির প্রধান আসামির জামিন

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়

নথি জালিয়াতির মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত বদলে দিয়েছিলেন অভিযুক্তরা। পরে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য রাষ্ট্রপতির কাছে নথিটি গেলে জালিয়াতির বিষয়টি ধরা পড়ে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ পদে একজনের নিয়োগে প্রধানমন্ত্রীর সুপারিশের নামে প্রতারণার অভিযোগ ছিল নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক চেয়ারম্যান মো. শাহজাহানের বিরুদ্ধে।

দুদকের করা এই প্রতারণার মামলায় সোমবার জামিন পেয়েছেন প্রধান আসামি শাহজাহান।

ঢাকা মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েশের আদালতে তিনি আইনজীবী শাহীনুল ইসলাম অনির মাধ্যমে আত্মসমর্পণ করে জামিন আবেদন করেন। দুদকের পক্ষ থেকে তার জামিনের বিরোধিতা করেন আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল।

উভয়পক্ষের শুনানি শেষে বিচারক ২০ হাজার টাকা মুচলেকায় ১১ নভেম্বর পর্যন্ত শাহজাহানের অন্তবর্তীকালীন জামিন মঞ্জুর করেন।

বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেন সংশ্লিষ্ট আদালতের পেশকার ফয়েজ আহমেদ।

মামলাটির নথি থেকে জানা যায়, গত বছর নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে কোষাধ্যক্ষ পদে নিয়োগের জন্য তিনজনের নাম প্রস্তাব করে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে একটি সারসংক্ষেপ প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে পাঠানো হয়। যাদের নাম প্রস্তাব করা হয় তারা হলেন- ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. এম এনামুল হক, বুয়েটের প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক মো. আব্দুর রউফ এবং বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের সাবেক কোষাধ্যক্ষ অবসরপ্রাপ্ত এয়ার কমোডোর এম আবদুস সালাম আজাদ।

সেই প্রস্তাবপত্রটি প্রধানমন্ত্রীর সামনে উপস্থাপন করা হলে তিনি অধ্যাপক ড. এম এনামুল হকের নামের পাশে টিক চিহ্ন দেন। পরে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য নথিটি রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানোর আগে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের অফিস সহকারী ফাতেমার কাছে ওই প্রস্তাবপত্র। এ সময় তিনি এম আবদুস সালাম আজাদ অনুমোদন না পাওয়ার গোপনীয় তথ্য ছাত্রলীগ নেতা তরিকুলকে ফোনে জানিয়ে দেন।

পরে ২০২০ সালের ১ মার্চ নথিটি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে কৌশলে বের করে ৪ নম্বর গেটের সামনে আসামি ফরহাদের হাতে তুলে দেন ফাতেমা। পরে এই নথিতে প্রধানমন্ত্রীর সুপারিশ বিকৃত করেন আসামিরা। এই কাজের জন্য ফাতেমাকে তারা ১০ হাজার করে বিকাশে মোট ২০ হাজার টাকা দেন বলে অভিযোগ।

৩ মার্চ আসামিরা নথিটি রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ে চূড়ান্ত অনুমোদনের জন্য পাঠালেও এক পর্যায়ে জালিয়াতির বিষয়টি ধরা পড়ে। জালিয়াতির ওই ঘটনায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক-৭ মোহাম্মদ রফিকুল আলম বাদি হয়ে গত ৫ মে মামলা করেন। এ মামলায় পুলিশ ৬ জনকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দেয়।

অভিযোগ দুদকের এখতিয়ারভুক্ত হওয়ায় কমিশনের উপ-পরিচালক ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী পরে ৮ জনকে অভিযুক্ত করে আরেকটি মামলা দায়ের করেন। এই মামলায় প্রধানমন্ত্রীর সিদ্ধান্ত বদলে দেয়ায় অভিযুক্তরা হলেন- নর্থ সাউথ ইউনির্ভাসিটির সাবেক চেয়ারম্যান মো. শাহজাহান, ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি (বহিষ্কৃত) তরিকুল ইসলাম মমিন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের কর্মচারী ফাতেমা খাতুন, নাজিম উদ্দীন, রুবেল, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ফরহাদ হোসেন, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালসের সাবেক কোষাধ্যক্ষ অবসরপ্রাপ্ত এয়ার কমোডর এম আবদুস সালাম আজাদ ও রবিউল আউয়াল।

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে ফের ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার
সৌদিতে বসে ভিওআইপি কারবার ঢাকায়
অবৈধ ভিওআইপি ধরতে লালমাটিয়ায় অভিযান
অবৈধ ভিওআইপি: এক চক্রেরই দিনে তিন লাখ

শেয়ার করুন

আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য গ্রেপ্তার

আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য গ্রেপ্তার

আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের (এবিটি) সদস্য মোহাম্মদ শামীম। ছবি: সংগৃহীত

এটিইউ জানায়, শামীম খিলাফত প্রতিষ্ঠার নামে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন উগ্রবাদী প্রচারণা চালিয়ে আসছেন। তিনি ভারত উপমহাদেশে মুসলিম ও অমুসলিমদের মধ্যে যুদ্ধ ‘গাজওয়াতুল হিন্দ’ সমাগত বলে জানাচ্ছিলেন অনুসারীদের।

পুলিশের এন্টি টেররিজম ইউনিট (এটিইউ) মোহাম্মদ শামীম নামে আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের (এবিটি) এক সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে।

গ্রেপ্তার করা শামীম মানিকগঞ্জের সরকারি দেবেন্দ্র কলেজের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী। তিনি গ্রেপ্তার এবিটি সদস্যদের জামিনের ব্যবস্থা ও অর্থ সংগ্রহের কাজে যুক্ত বলে দাবি করেছে এটিইউ।

সোমবার বিকেলে এটিইউ-এর পুলিশ সুপার (মিডিয়া অ্যান্ড অ্যাওয়ারনেস) আসলাম খান এসব তথ্য জানান।

শামীমকে রোববার মানিকগঞ্জের শিমুলিয়া এলাকা থেকে গ্রেপ্তারের সময় জব্দ করা হয়েছে একটি মোবাইল সেট ও ৬ টি উগ্রবাদী বই।

এটিইউ জানায়, শামীম খিলাফত প্রতিষ্ঠার নামে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন উগ্রবাদী প্রচারণা চালিয়ে আসছেন। তিনি ‘গাজওয়াতুল হিন্দ’ সমাগত বলে জানাচ্ছিলেন অনুসারীদের।
ইসলামের সর্বশেষ নবি মুহাম্মদের একটি ভবিষ্যতবাণীতে উল্লেখ আছে গাজওয়াতুল হিন্দের কথা। যখন ভারত উপমহাদেশে মুসলিম ও অমুসলিমদের মধ্যে একটি যুদ্ধ হবে, আর তাতে মুসলমানদের বিজয় ঘটবে।

শামীম সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ‘গাজওয়াতুল হিন্দ’ নিয়ে লেখালেখির পাশাপাশি অনলাইনে উগ্রবাদী প্রচারণা চালাচ্ছিলেন। এবিটি সদস্যদের আইনী প্রক্রিয়ায় মুক্তির জন্য অর্থ সংগ্রহ ও সাংগঠনিক কাজের বিষয়ে তথ্য আছে এটিইউ-এর কাছে।

শামীমের বিরুদ্ধে মানিকগঞ্জের শিবালয় থানায় সন্ত্রাস বিরোধী আইনে মামলা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে ফের ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার
সৌদিতে বসে ভিওআইপি কারবার ঢাকায়
অবৈধ ভিওআইপি ধরতে লালমাটিয়ায় অভিযান
অবৈধ ভিওআইপি: এক চক্রেরই দিনে তিন লাখ

শেয়ার করুন

আঘাত দিয়ে বাংলাদেশকে দাবিয়ে রাখা যাবে না: খালিদ

আঘাত দিয়ে বাংলাদেশকে দাবিয়ে রাখা যাবে না: খালিদ

দুর্গাপূজায় কুমিল্লায় মণ্ডপে চালানো হয় প্রথম হামলা। ফাইল ছবি

‘তারা মাথা নিচু করে, কুকুরের মতো লেজ গুটিয়ে আজকে চোরাগোপ্তা হামলা করছে। এই চোরাগোপ্তা হামলাও বন্ধ হয়ে যাবে। কারণ, বাংলাদেশের জনগণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ।’

সাম্প্রদায়িক আঘাত করে বাংলাদেশকে দাবিয়ে রাখা যাবে না বলে জানিয়ে দিয়েছেন নৌ প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

রাজধানীর বিআইডব্লিউটিসিতে সোমবার শেখ রাসেল দিবসের আলোচনায় তিনি এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সাম্প্রদায়িক আঘাত দিয়ে বাংলাদেশকে দাবিয়ে রাখা যাবে না। বাংলাদেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে, তখনই এই সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী আবার নতুনভাবে আঘাত হানছে।

‘তারা মাথা নিচু করে, কুকুরের মতো লেজ গুটিয়ে আজকে চোরাগোপ্তা হামলা করছে। এই চোরাগোপ্তা হামলাও বন্ধ হয়ে যাবে। কারণ, বাংলাদেশের জনগণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ।’

খালিদ বলেন, ‘পঁচাত্তর থেকে আজকে ২০২১ পর্যন্ত দীর্ঘ ৪৬ বছর যাবত বাংলাদেশে একই গল্প শোনানো হয়েছে, সাম্প্রদায়িকতার গল্প। সংবিধানকে ক্ষত-বিক্ষত করা হয়েছে। সাম্প্রদায়িক বীজ ঢুকিয়ে দেয়া হয়েছে। পারে নাই।

‘আমরা যখন প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার লক্ষ্য নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি। দারিদ্র্যকে দূর করে যখন একটা উন্নত দেশের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি, যখন এ বাংলাদেশ রাসেলের মতো শিশুদের জন্য একটি নিরাপদ দেশে পরিণত হচ্ছে, তখন সাম্প্রদায়িকতা দিয়ে এই বাংলাদেশকে আবার পেছনে টেনে ধরার চেষ্টা করা হচ্ছে।’

সব ধর্মের মানুষই এ দেশের নাগরিক উল্লেখ করে খালিদ বলেন, ‘সম্মিলিতভাবে এখানে এই মুক্তিযুদ্ধ হয়েছে। এই যে, সম্মিলিত রক্তের বিনিময়ে বাংলাদেশ একটি অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেছিল। আমাদের অসাম্প্রদায়িক চেতনার ভিত্তিতে সংবিধান রচিত হয়েছিল।’

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে ফের ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার
সৌদিতে বসে ভিওআইপি কারবার ঢাকায়
অবৈধ ভিওআইপি ধরতে লালমাটিয়ায় অভিযান
অবৈধ ভিওআইপি: এক চক্রেরই দিনে তিন লাখ

শেয়ার করুন

সাম্প্রদায়িক সহিংসতা: বিএনপির দুই কমিটি

সাম্প্রদায়িক সহিংসতা: বিএনপির দুই কমিটি

ফাইল ছবি

প্রথম কমিটি উপদ্রুত এলাকা পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের সঙ্গে সহমর্মিতা প্রকাশ করবে। দ্বিতীয় কমিটি ঘটনাগুলোর তদন্ত করে বিএনপির কেন্দ্রে প্রতিবেদন দেবে।

দেশের নানা প্রান্তে সাম্প্রদায়িক সহিংসতার জন্য সরকার সমর্থকদেরকে দায়ী করার পর ঘটনা তদন্ত করতে দুইটি কমিটি গঠন করেছে বিএনপি।

সোমবার দুপুরে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

দুটি কমিটির একটির নেতৃত্বে আছেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় এবং একটির নেতৃত্বে সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক রুহুল কুদ্দুস কাজল।

প্রথম কমিটি উপদ্রুত এলাকা পরিদর্শন করে ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের সঙ্গে সহমর্মিতা প্রকাশ করবে। দ্বিতীয় কমিটি ঘটনাগুলোর তদন্ত করে বিএনপির কেন্দ্রে প্রতিবেদন দেবে।

আগের রাতে দলের সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির সভায় এই কমিটি গঠিত হয়। সভার সিদ্ধান্ত জানিয়ে বিজ্ঞপ্তিতে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ক্ষমতাসীনরা তাদের অবৈধ ক্ষমতা দীর্ঘ স্থায়ী করার লক্ষ্যে বিভাজনের রাজনীতি করছে। রাজনৈতিক দূরভিসন্ধির কারণেই এই রক্তপাত, লুটতরাজ চলছে।’

গত বুধবার দুর্গাপূজা চলাকালে কুমিল্লার একটি মণ্ডপে পবিত্র কোরআন পাওয়াকে কেন্দ্র করে সেই মণ্ডপটি ভাঙচুর করা হয়। এরপর দেশের বিভিন্ন এলাকায় মন্দির, মণ্ডপে চলে হামলা। এর মধ্যে রংপুরে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়িঘরে আগুনও দেয়া হয়েছে।

সাম্প্রদায়িক এসব হামলার প্রতিবাদও করছেন বহুজন। এমনকি ধর্মীয় অনেক নেতাও সোচ্চার হয়েছেন। তারা বলছেন, যে মুসলমানরা এ ধরনের হামলা করছেন তারাই ইসলামের অবমাননা করছেন।

সরকারও এসব ঘটনায় কঠোর পদক্ষেপ নেয়ার হুঁশিয়ারি দিয়েছে। কয়েক হাজার মানুষের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। গ্রেপ্তারও হয়েছে দুই শতাধিক। তবে এর মধ্যেই গতরাতে রংপুরের পীরগঞ্জের ঘটনাটি নতুন উদ্বেগ তৈরি করেছে।

ফখরুল জানান, তার দলের স্থায়ী কমিটি মনে করে এসব হামলায় সরকার সমর্থকরা জড়িত। দেশে রাজনৈতিক সংকট আছে দাবি করে তিনি এও বলেন যে, তার দল মনে করে এই সংকট থেকে দৃষ্টি সরাতে সাম্প্রদায়িক সংকট তৈরি করছে।

ফখরুল বলেন, তাদের দলের স্থায়ী কমিটি সনাতন ধর্মের অনুসারীদের ধর্মীয় স্বাধীনতা নিশ্চিত করার আহ্বান জানায় এবং সকল ধর্মে মানুষের জীবন ও সম্পত্তির নিরাপত্তা নিশ্চিত করনে সরকারের ব্যর্থতার তীব্র সমালোচনা করা হয়।

অবিলম্বে নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যমে দোষী ব্যক্তিদের চিহ্নিত করে বিচারের আওতায় নিয়ে আসার দাবিও জানানো হয়।

কোনো তদন্ত ছাড়াই বিএনপি এর নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে তাদেরকে বাড়ি-ঘরে পুলিশি তল্লাশি চালানো হচ্ছে অভিযোগ করে এরও তীব্র নিন্দা জানান ফখরুল।

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি অক্ষুন্ন রাখতে সব নাগরিককে সচেতন হওয়ার অনুরোধও করেছে বিএনপি।

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে ফের ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার
সৌদিতে বসে ভিওআইপি কারবার ঢাকায়
অবৈধ ভিওআইপি ধরতে লালমাটিয়ায় অভিযান
অবৈধ ভিওআইপি: এক চক্রেরই দিনে তিন লাখ

শেয়ার করুন

মণ্ডপে হামলাকারীদের শাস্তির দাবিতে শাহবাগে অবরোধ

মণ্ডপে হামলাকারীদের শাস্তির দাবিতে শাহবাগে অবরোধ

বিভিন্ন জেলার পূজামণ্ডপে হামলাকারীদের শাস্তির দাবিতে শাহবাগ মোড়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অবরোধ। ছবি: নিউজবাংলা

অবরোধে যোগ দিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মিহির লাল শাহ বলেন, ‘আমরা রোহিঙ্গা নই, আমরা বাংলাদেশি। আমরা আমাদের ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালনের অধিকার রাখি। আমাদের এই অধিকারে যারা হাত দিয়েছে, তাদের হাত আমরা ভেঙে দেব। আমরা এভাবে রাস্তা অবরোধ করতে চাইনি, কিন্তু আমাদের বাধ্য করা হয়েছে। যারা আমাদের কারণে যানজটে পড়ে আছে, তাদের কাছে আমরা ক্ষমা চাই।’

কুমিল্লাসহ দেশের বিভিন্ন জেলার পূজামণ্ডপে হামলাকারীদের শাস্তি নিশ্চিতের দাবিসহ ৭ দফা দাবিতে রাজধানীর শাহবাগ মোড় অবরোধ করে বিক্ষোভ করছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা।

রোববার সকাল ১০টা থেকে শিক্ষার্থীদের অবরোধের কারণে শাহবাগ থেকে পল্টন, সায়েন্স ল্যাব, বাংলামোটর ও টিএসসি অভিমুখী সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলসহ বিভিন্ন হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা টিএসসি এলাকায় জড়ো হন। সেখান থেকে তারা মিছিল নিয়ে শাহবাগ মোড়ে আসেন।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) রমনা বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) সাজ্জাদুর রহমান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘গতকাল রাতে রংপুরের ঘটনার প্রতিবাদে শাহবাগ মোড়ে জগন্নাথ হলের ছাত্ররা অবস্থান নিয়েছে। যান চলাচল বেশ কিছুক্ষণ ধরে বন্ধ আছে। হলের প্রভোস্ট স্যারও আছেন।’

অবরোধে যোগ দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের জগন্নাথ হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক মিহির লাল শাহ বলেন, ‘আমরা সবাই বাংলাদেশের মানুষ। সকলের শরীরে একই রক্ত প্রবাহিত হয়। তাহলে এ ধর্মীয় উন্মাদনা কেন? সরকারের প্রতি আমাদের দাবি, এই সাম্প্রদায়িক হামলা বন্ধ করতে হবে। দ্রুত হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া হোক। আমাদের দাবি না মানা পর্যন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে।

‘আমরা রোহিঙ্গা নই, আমরা বাংলাদেশি। আমরা আমাদের ধর্মীয় অনুষ্ঠান পালনের অধিকার রাখি। আমাদের এই অধিকারে যারা হাত দিয়েছে, তাদের হাত আমরা ভেঙে দেব। আমরা এভাবে রাস্তা অবরোধ করতে চাইনি, কিন্তু আমাদের বাধ্য করা হয়েছে। যারা আমাদের কারণে যানজটে পড়ে আছে, তাদের কাছে আমরা ক্ষমা চাই।’

মোড়ে অবস্থান নেয়া শিক্ষার্থীরা ‘সংখ্যালঘু মন্ত্রণালয় করতে হবে’, ‘মন্দিরে হামলা কেন, প্রশাসন জবাব চাই’, ‘ভাইয়ের রক্ত বৃথা যেতে দেব না’সহ নানা স্লোগান দিচ্ছেন।

তাদের ৭ দফা হলো:

০১. হামলার শিকার মন্দিরগুলো প্রয়োজনীয় সংস্কার করা।

০২. বসতবাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে লুটপাটের ক্ষতিপূরণ।

০৩. ধর্ষণ ও হত্যার শিকার পরিবারগুলোকে স্থায়ী ক্ষতিপূরণ।

০৪. দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত করা।

০৫. জাতীয় সংসদে আইন প্রণয়নের মাধ্যমে মন্দির ও সংখ্যালঘুদের বসতবাড়িতে সাম্প্রদায়িক হামলার দায়ে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা।

০৬. সংখ্যালঘু মন্ত্রণালয় ও সংখ্যালঘু কমিশন গঠন, হিন্দু ধর্মীয় কল্যাণ ট্রাস্ট্রের আধুনিকায়ন করে ফাউন্ডেশনে উন্নীত করা।

০৭. জাতীয় বাজেটে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের জন্য জিডিপির ১৫% বরাদ্দ রাখা।

আন্দোলনকারীরা বলছেন, তাদের এসব দাবি মানার আশ্বাস না আসা পর্যন্ত তারা অবরোধ চালিয়ে যাবেন।

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে ফের ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার
সৌদিতে বসে ভিওআইপি কারবার ঢাকায়
অবৈধ ভিওআইপি ধরতে লালমাটিয়ায় অভিযান
অবৈধ ভিওআইপি: এক চক্রেরই দিনে তিন লাখ

শেয়ার করুন

বাসের ধাক্কায় বাইক আরোহী নিহত

বাসের ধাক্কায় বাইক আরোহী নিহত

ভাতিজা রুবেল বলেন, ‌আমরা দুজন তেজগাঁও থেকে মোটরসাইকেলে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও যাচ্ছিলাম। মাতুয়াইলে একটি বাস ধাক্কা দিলে দুজন রাস্তায় পড়ে যাই। পরে বাসের চাকায় কাকা পিষ্ট হন।

রাজধানীর যাত্রাবাড়ী মাতুয়াইল এলাকায় দুর্ঘটনায় আবুল কাশেম নামে এক মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় রুবেল নামে আরও একজন আহত হয়েছেন।

সোমবার বেলা তিনটায় কাশেমকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। রুবেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

মোটরসাইকেলটি চালাচ্ছিলেন রুবেল। তিনি বলেন, ‘কাশেম কাকাকে নিয়ে নারায়ণগঞ্জ সোনারগাঁওয়ের বাড়িতে যাচ্ছিলাম। মাতুয়াইল পৌঁছার পর হঠাৎ একটা বাস ধাক্কা দিলে দুজনেই রাস্তায় পড়ে যাই। এরপর কাকাকে চাপা দিয়ে গাড়িটি পালিয়ে যায়। নিজে ছিটকে পড়ার কারণে কোন বাস চাপা দিয়েছে তা দেখতে পাইনি।’

নিহত কাশেম তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল এলাকায় একটি কোম্পানিতে সিকিউরিটি গার্ডের চাকরি করতেন।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ (পরিদর্শক) বাচ্চু মিয়া বলেন, ‘মাতুয়াইল এলাকায় বাসচাপায় আহত একজনকে জরুরি বিভাগে আনা হয়েছিল। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মরদেহটি মর্গে রাখা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
রাজধানীতে ফের ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার
সৌদিতে বসে ভিওআইপি কারবার ঢাকায়
অবৈধ ভিওআইপি ধরতে লালমাটিয়ায় অভিযান
অবৈধ ভিওআইপি: এক চক্রেরই দিনে তিন লাখ

শেয়ার করুন