উচ্চশিক্ষা পাঠ্যক্রম ঢেলে সাজানোর পরামর্শ

উচ্চশিক্ষা পাঠ্যক্রম ঢেলে সাজানোর পরামর্শ

‘আউটকাম বেইজড এডুকেশন বাস্তবায়ন’ শীর্ষক কর্মশালায় বক্তারা। ছবি: নিউজবাংলা

ড. আবু তাহের বলেন, ‘প্রয়োজনের নিরিখে পাঠ্যক্রম প্রণয়ন করা হলে উচ্চশিক্ষায় গুণগত পরিবর্তন আসবে। পাঠ্যক্রম যেন জীবনমুখী হয়, দক্ষ স্নাতক তৈরি ও চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের চাহিদা উপযোগী হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।’

চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা ও অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি অব্যাহত রাখতে উচ্চশিক্ষা স্তরে পাঠ্যক্রম ঢেলে সাজানোর পরামর্শ দিয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) সদস্য অধ্যাপক ড. মো. আবু তাহের।

ইউজিসির স্ট্র্যাটেজিক প্ল্যানিং অ্যান্ড কোয়ালিটি অ্যাসিউরেন্স (এসপিকিউএ) বিভাগ আয়োজিত ‘আউটকাম বেইজড এডুকেশন বাস্তবায়ন’ শীর্ষক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বুধবার সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ পরামর্শ দেন।

ড. আবু তাহের বলেন, ‘প্রয়োজনের নিরিখে পাঠ্যক্রম প্রণয়ন করা হলে উচ্চশিক্ষায় গুণগত পরিবর্তন আসবে। পাঠ্যক্রম যেন জীবনমুখী হয়, দক্ষ স্নাতক তৈরি ও চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের চাহিদা উপযোগী হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।’

এসপিকিউএ বিভাগের উপ-পরিচালক বিষ্ণু মল্লিকের সঞ্চালনায় কর্মশালায় বিভাগের পরিচালক ড. ফখরুল ইসলাম স্বাগত বক্তব্য দেন। অনুষ্ঠানে এসপিকিউএ বিভাগের অতিরিক্ত পরিচালক জেসমিন পারভীনসহ কমিশনের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

ড. আবু তাহের বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে আউটকাম বেইজড এডুকেশন অনুসরণ করে পাঠ্যক্রম প্রণয়ন করতে হবে। এটি বাস্তবায়ন করা গেলে উচ্চশিক্ষা স্তরে পাঠ্যক্রমে ব্যাপক পরিবর্তন আসবে। এর মাধ্যমে নতুন জ্ঞান সৃজন হবে এবং শিক্ষায় বৈচিত্র্য আসবে।’

কর্মশালায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অফ প্রফেশনালস, বাংলাদেশ টেক্সটাইল বিশ্ববিদ্যালয় ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেরিটাইম ইউনিভার্সিটির ৩০ জন শিক্ষক অংশ নেন। রিসোর্স পারসন হিসেবে ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মো. মোজাহার আলী।

আরও পড়ুন:
এনআইডি ছাড়াই টিকা পাবেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ২টি গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশ করবে ইউজিসি
এনডিএলআই-এর সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করবে ইউজিসি
গবেষণার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ১০০ কোটি টাকা
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে সম্মেলন করবে ইউজিসি

শেয়ার করুন

মন্তব্য

ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবিতে প্রজন্ম ’৭১

ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবিতে প্রজন্ম ’৭১

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধনে প্রজন্ম ’৭১

সংগঠনটির যুগ্ম সম্পাদক নুজহাত চৌধুরী শম্পা বলেন, ‘বাংলাদেশ আমাদের বাবাদের রক্তে রঞ্জিত পবিত্র ভূমি। বাংলাদেশকে অসম্প্রদায়িক রাখব। তার জন্য প্রয়োজন হলে রক্তও দেব।’

সাম্প্রদায়িকতা রুখতে পাঁচ দফা দাবি জানিয়েছে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সন্তানদের সংগঠন প্রজন্ম ’৭১। ১৯৭২ সালের সংবিধান ফিরিয়ে আনারও আহ্বান জানিয়েছে সংগঠনটি।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে শুক্রবার সকালে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এসব দাবি জানানো হয়।

ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করা ও রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাতিলসহ সংগঠনের অন্য দাবিগুলো হলো সব ধর্মের মানুষকে নির্ভয়ে ধর্মীয় উৎসব পালনের নিশ্চয়তা দিতে হবে। এ ছাড়া স্কুলপর্যায়ে পাঠ্যপুস্তক সাম্প্রদায়িকতামুক্ত করে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস অবশ্যই পাঠ্য করতে হবে।

মানববন্ধনে যুগ্ম সম্পাদক নুজহাত চৌধুরী শম্পা বলেন, ‘অসাম্প্রদায়িকতাকে প্রগতিশীল বাঙালি জাতীয়তাবাদে উদ্বুদ্ধ করে গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন। প্রতিবছর আমরা দেখছি পূজামণ্ডপে হামলা করতে। আমরা বারবার ফিনিক্স পাখির মতো উঠে দাঁড়াব। আমরা এ দেশ ছাড়ব না।

‘বাংলাদেশ আমাদের বাবাদের রক্তে রঞ্জিত পবিত্র ভূমি। বাংলাদেশকে অসম্প্রদায়িক রাখব। তার জন্য প্রয়োজন হলে রক্তও দেব।’

মানববন্ধনে বক্তারা জানান, শুধু আইন প্রয়োগ করে সাম্প্রদায়িক রাজনীতির সংস্কৃতি বন্ধ করা যাবে না। বঙ্গবন্ধু প্রণীত ১৯৭২-এর সংবিধানকে উপেক্ষা করা হয়েছে। সেই সঙ্গে সাম্প্রদায়িক সংস্কৃতি ও রাজনীতির চর্চাকে অবাধ করা হয়েছে সমাজের সবস্তরে।

গত বছর বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যবিরোধী সন্ত্রাসও এই সাম্প্রদায়িক রাজনীতির ধারাবাহিকতা। দেশের শিক্ষাব্যবস্থায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনাসংশ্লিষ্ট কোনো সিলেবাস প্রণয়ন হয়নি, বরং সাম্প্রদায়িকতার বীজ বপন করা হয়েছে।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনটির সভাপতি আসিফ মুনীর তন্ময়, সাধারণ সম্পাদক কাজী সাইফুদ্দিন আব্বাস, যুগ্ম সম্পাদক বশীর আহমেদসহ অনেকে।

আরও পড়ুন:
এনআইডি ছাড়াই টিকা পাবেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ২টি গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশ করবে ইউজিসি
এনডিএলআই-এর সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করবে ইউজিসি
গবেষণার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ১০০ কোটি টাকা
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে সম্মেলন করবে ইউজিসি

শেয়ার করুন

পল্টনের জামান টাওয়ারের আগুন নিয়ন্ত্রণে

পল্টনের জামান টাওয়ারের আগুন নিয়ন্ত্রণে

প্রতীকী ছবি

ফায়ার সার্ভিস জানায়, শুক্রবার বেলা ১টা ১২ মিনিটে আগুন ধরার খবর আসে। বাহিনীর সদস্যরা বেলা ১টা ২৮ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

রাজধানীর পুরানা পল্টনের জামান টাওয়ারে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

ফায়ার সার্ভিস জানায়, শুক্রবার বেলা ১টা ১২ মিনিটে আগুন ধরার খবর আসে। বাহিনীর সদস্যরা বেলা ১টা ২৮ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

ফায়ার সার্ভিস সদর দপ্তরের ডিউটি অফিসার খালেদা ইয়াসমিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বেলা ১ টা ১২ মিনিটে খবর পাই রাজধানীর পুরানা পল্টনের ১০ তলাবিশিষ্ট জামান টাওয়ারের চতুর্থ তলায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ওই খবরে মোট চারটি ইউনিট পাঠানো হয়।

‘বেলা ১টা ২৮ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। আগুনের কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রাথমিকভাবে জানা যায়নি।’

আরও পড়ুন:
এনআইডি ছাড়াই টিকা পাবেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ২টি গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশ করবে ইউজিসি
এনডিএলআই-এর সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করবে ইউজিসি
গবেষণার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ১০০ কোটি টাকা
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে সম্মেলন করবে ইউজিসি

শেয়ার করুন

সদিচ্ছা থাকলে হিন্দুদের ওপর হামলা ঠেকানো যেত

সদিচ্ছা থাকলে হিন্দুদের ওপর হামলা ঠেকানো যেত

জাতীয় প্রেস ক্লাবে প্রতিবাদ কর্মসূচিতে জাতীয় হিন্দু মহাজোটের সহযোগী সংগঠন জাতীয় হিন্দু ছাত্র-যুব মহাজোট। ছবি: নিউজবাংলা

হিন্দুদের ওপর হামলা নিয়ে জাতীয় হিন্দু মহাজোটের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সুধাংশু চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, ‘প্রশাসনের সদিচ্ছা থাকলে এই ঘটনা এড়ানো যেত। প্রশাসনের মধ্যে এখনও ঘাপটি মেরে লুকিয়ে আছে মৌলবাদী চক্র।’

প্রশাসনের সদিচ্ছা থাকলে দুর্গাপূজার সময় সারা দেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা ঠেকানো যেত বলে মনে করছে জাতীয় হিন্দু মহাজোট।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে শুক্রবার হিন্দু মহাজোট আয়োজিত প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ সমাবেশে এমন মত দেন সংগঠনটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সুধাংশু চন্দ্র বিশ্বাস।

তিনি বলেন, ‘দুর্গাপূজার সময় সারা দেশে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ওপর সহিংসতা কোনো সাধারণ ঘটনা নয়; বরং এটা হিন্দু ধর্মের ওপর সুস্পষ্ট আঘাত।’

দুর্গাপূজার মধ্যে প্রথমে কুমিল্লা শহরে একটি মন্দিরে কোরআন রাখাকে কেন্দ্র করে হিন্দুদের পূজামণ্ডপ ভাঙচুর করা হয়। পরে নোয়াখালী, বরিশাল, রংপুরসহ বিভিন্ন স্থানে হিন্দুদের বাড়িঘর ও মন্দিরে হামলা হয়।

এ নিয়ে সুধাংশু বলেন, ‘প্রশাসনের সদিচ্ছা থাকলে এই ঘটনা এড়ানো যেত। প্রশাসনের মধ্যে এখনও ঘাপটি মেরে লুকিয়ে আছে মৌলবাদী চক্র।

‘সরকারের দীর্ঘদিন ধরে সংখ্যালঘু নির্যাতনের প্রশ্নে নমনীয় নীতির কারণে আজকের এই অবস্থা তৈরি হয়েছে।’

হিন্দু মহাজোটের ভাষ্য, দেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে হতাশা বাড়ছে। বিভিন্ন জায়গায় এখনও মন্দির, প্রতিমা ভাঙচুর করা হচ্ছে। আগে রাতের আঁধারে মন্দির ভাঙা হতো। এখন দিনে মন্দির ভাঙা হচ্ছে।

সংগঠনটি বলছে, এ ধরনের ঘটনায় কেউ ধরা পড়লে প্রশাসন তাকে ‘পাগল ও মানসিক ভারসাম্যহীন’ আখ্যা দিচ্ছে। অর্থাৎ হিন্দু নির্যাতনে জড়িতকে ‘পাগল’ বলে চালিয়ে দেয়া হচ্ছে।

কুমিল্লার ঘটনায় কক্সবাজারের সুগন্ধা পয়েন্ট থেকে বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে ইকবাল হোসেনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরিবারের দাবি, ইকবাল অপ্রকৃতিস্থ।

প্রতিবাদ কর্মসূচিতে জাতীয় হিন্দু মহাজোটের প্রধান সমন্বয়কারী শ্যামল কুমার রায়, নির্বাহী মহাসচিব ও মুখপাত্র পলাশ কান্তি দে, সহসভাপতি প্রভাস চন্দ্র মণ্ডলসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
এনআইডি ছাড়াই টিকা পাবেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ২টি গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশ করবে ইউজিসি
এনডিএলআই-এর সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করবে ইউজিসি
গবেষণার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ১০০ কোটি টাকা
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে সম্মেলন করবে ইউজিসি

শেয়ার করুন

কারওয়ানবাজার এলাকায় ট্রেন লাইনচ্যুত

কারওয়ানবাজার এলাকায় ট্রেন লাইনচ্যুত

চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী একটি মালবাহী ট্রেন কারওয়ানবাজার এলাকায় লাইনচ্যুত হয়েছে। ছবি: সাইফুল ইসলাম

চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী একটি মালবাহী ট্রেন কারওয়ানবাজার এলাকায় লাইনচ্যুত হয়েছে। এতে কমলাপুরগামী ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রমনা ট্রাফিক বিভাগের সহকারী কমিশনার রেফাতুল ইসলাম।

প্রাথমিকভাবে তিনি বলেন, তিনটি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। এতে মগবাজার থেকে এফডিসি মোড় হয়ে সাত রাস্তা বা কারওয়ান বাজারের দিকে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। ট্রেন উদ্ধারে কতক্ষণ লাগবে তা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না ঘটনাস্থলে থাকা রেলের কর্মীরা।

তবে বেলা পৌনে ১টায় ট্রেনটি সরিয়ে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন এসি ট্রাফিক, রমনা। ট্রেন সরানোর পর যান চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

আরও পড়ুন:
এনআইডি ছাড়াই টিকা পাবেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ২টি গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশ করবে ইউজিসি
এনডিএলআই-এর সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করবে ইউজিসি
গবেষণার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ১০০ কোটি টাকা
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে সম্মেলন করবে ইউজিসি

শেয়ার করুন

ব্যাংকার দম্পতির বাসায় গৃহকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ

ব্যাংকার দম্পতির বাসায় গৃহকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ

রাজধানীর বনশ্রী এলাকায় ব্যাংকার দম্পতির বাসা থেকে উদ্ধার হওয়া গৃহকর্মীর মরদেহ ঢামেক হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

রামপুরা থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা ৯৯৯ নম্বরে ফোন পেয়ে ব্যাংকার দম্পতির বাসা থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় ওই গৃহকর্মীর মরদেহ উদ্ধার করি।’

রাজধানীর রামপুরা থানাধীন বনশ্রী এলাকায় ব্যাংকার দম্পতির বাসা থেকে কোহিনুর আক্তার (১৬) নামের গৃহকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

জরুরি সেবার ৯৯৯ নম্বরে কল পেয়ে পুলিশ বৃহস্পতিবার বিকেলে মরদেহটি উদ্ধার করে।

পরে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ রাত ৮টার দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে নেয়া হয়।

কোহিনুরের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা জেলার মুরাদনগর উপজেলায়। তার পরিবারের একাধিক সদস্য রাজধানীতে থাকেন।

রামপুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা ৯৯৯ নম্বরে ফোন পেয়ে ব্যাংকার দম্পতির বাসা থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় ওই গৃহকর্মীর মরদেহ উদ্ধার করি।’

তিনি বলেন, ‘শরীফুল আলম ওয়ান ব্যাংকের অফিসার এবং তার স্ত্রী মাহবুবা সুলতানা উত্তরা ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার হিসেবে কর্মরত। আমাদের কাছে জিজ্ঞাসাবাদে এই দম্পতি জানায়, তাদের বাসায় দেড় মাস আগে কাজ করতে আসে সে (কোহিনুর)।

‘এর আগেও সে এই বাসায় কাজ করেছিল। তাদের (দম্পতি) ৫ বছরের একটি সন্তানকে দেখাশোনা করার জন্য তাকে আনা হয়েছিল। তার বড় বোনও এই বাসায় আগে কাজ করত। তারা আরও জানায়, তাদের বাসায় সিসি ক্যামেরা আছে, কিন্তু সেটায় কোনো স্টোরেজ নেই।’

ওসি বলেন, ‘আমরা একটি অপমৃত্যু মামলা নিয়েছি। আমরা তদন্ত শুরু করেছি। তদন্তে আসল ঘটনা বেরিয়ে আসবে।’

পুলিশ জানায়, ওই গৃহকর্মীর মা ও বাবাকে তারা কল দিয়েছিল, কিন্তু তারা আসেনি।

ওসি রফিকুল বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি তার (গৃহকর্মী) মা হাজারীবাগ এলাকায় থাকে। তাকেও আসতে বলা হবে।

‘একটি বোন আছে উত্তরায়। আমরা তার সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছি।’

আরও পড়ুন:
এনআইডি ছাড়াই টিকা পাবেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ২টি গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশ করবে ইউজিসি
এনডিএলআই-এর সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করবে ইউজিসি
গবেষণার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ১০০ কোটি টাকা
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে সম্মেলন করবে ইউজিসি

শেয়ার করুন

যুবলীগের চিঠি সংকলন ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ প্রকাশ

যুবলীগের চিঠি সংকলন ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ প্রকাশ

‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ বইয়ের প্রচ্ছদ।

‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ চিঠি সংকলন গ্রন্থের সম্পাদক ও প্রকাশক যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও নির্বাহী সম্পাদক যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল। গ্রন্থটির মুখবন্ধ লিখেছেন জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম ও প্রচ্ছদ করেছেন ইন্দ্রনীল চট্টোপাধ্যায়।

বঙ্গবন্ধুর উদ্দেশে লেখা প্রতীকী চিঠি নিয়ে গ্রন্থ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের সম্পাদনায় রচিত গ্রন্থটির নাম রাখা হয়েছে ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’।

১৭ অক্টোবর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে। তারই অংশ ছিল এই চিঠি লেখা কর্মসূচি। সারাদেশ থেকে আসা শতাধিক চিঠি থেকে বাছাইকৃত চিঠি নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে গ্রন্থটি।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষে ১৭ অক্টোবর আইইবি মিলনায়তনে যুবলীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আশ্রয় কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের মাননীয় চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন এমপি, সাবেক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি, বিশিষ্ট রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান এমপি, যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত নেতারা ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন।

‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ চিঠি সংকলন গ্রন্থের সম্পাদক ও প্রকাশক যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও নির্বাহী সম্পাদক যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল। গ্রন্থটির মুখবন্ধ লিখেছেন জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম ও প্রচ্ছদ করেছেন ইন্দ্রনীল চট্টোপাধ্যায়।

সম্পাদনা সহযোগী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মো. রফিকুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক জয়দেব নন্দী, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক মো. জহিরুল ইসলাম মিল্টন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক বিপ্লব মোস্তাফিজ, উপ গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক অ্যাডভোকেট শেখ নবীরুজ্জামান বাবু এবং উপ প্রচার সম্পাদক আদিত্য নন্দী।

গ্রন্থটির সম্পাদক শেখ ফজলে শামস পরশ বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে প্রজন্মের ভাবনা, আবেগ, ভালোবাসা প্রকাশিত হোক- এমন ইতিবাচক উদ্দেশে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ আয়োজন করে বঙ্গবন্ধুর প্রতি প্রতীকী চিঠি লেখা কর্মসূচি। সারাদেশ থেকে প্রাপ্ত বঙ্গবন্ধুকে লেখা চিঠিগুলো থেকে বাছাইকৃত চিঠি নিয়ে প্রকাশিত হলো চিঠি সংকলন গ্রন্থ ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’।’

প্রিয় বঙ্গবন্ধু গ্রন্থটি বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও শাহাবাগের পাঠক সমাবেশে পাওয়া যাবেও বলে জানান তিনি। এর শুভেচ্ছা মূল্য ধরা হয়েছে ৩২০ টাকা।

আরও পড়ুন:
এনআইডি ছাড়াই টিকা পাবেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ২টি গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশ করবে ইউজিসি
এনডিএলআই-এর সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করবে ইউজিসি
গবেষণার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ১০০ কোটি টাকা
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে সম্মেলন করবে ইউজিসি

শেয়ার করুন

ডেঙ্গু রোগী ২২ হাজার ছাড়াল

ডেঙ্গু রোগী ২২ হাজার ছাড়াল

ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে এক শিশু। ফাইল ছবি

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্তদের মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১৩৯ জন। ঢাকার বাইরে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৩১ জন।

গত ২৪ ঘণ্টায় মশাবাহিত ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১৭০ জন। এই নিয়ে চলতি বছরে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি রোগীর সংখ্যা ২২ হাজার ৭ জন। এর মধ্যে মারা গেছে ৮৪ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার ও কন্ট্রোল রুম থেকে বৃহস্পতিবার পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ডেঙ্গু আক্রান্তদের মধ্যে ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ১৩৯ জন। ঢাকার বাইরে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে ৩১ জন।

কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছর ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া রোগীর সংখ্যা ২২ হাজার ০৭ জন। এর মধ্যে শুরুর ছয় মাস ডেঙ্গু রোগীর সংখ্যা ছিল ২৭০ জন। এ বছরের জুলাইয়ে ডেঙ্গুর প্রকোপ বাড়তে থাকে। ওই মাসে রোগী শনাক্ত হয়েছিল ২ হাজার ২৮৬ জন। এই মাসে মারা যায় ১২ জন।

আগস্টে ডেঙ্গু রোগী ছিল ৭ হাজার ৬৯৮ জন। এই মাসে মারা যায় ৩৪ জন। সেপ্টেম্বরে রোগীর সংখ্যা ছিল ৭ হাজার ৮৪১ জন।

এই মাসে মৃত্যু হয় ২৩ জনের। চলতি মাসে ৩ হাজার ৮১০ ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। এর মধ্যে মারা গেছে ১৫ জন।

কন্ট্রোল রুমের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছর ডেঙ্গু নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া ২২ হাজার ৭ জনের মধ্যে ছাড়পত্র পেয়েছেন ২১ হাজার ১৩১ জন। বর্তমানে হাসপাতালে ভর্তি ৭৯২ জন। এদের মধ্যে ঢাকার ৪৬টি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৬২৪ ডেঙ্গু রোগী। রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউট (আইইডিসিআর) জানিয়েছে, ডেঙ্গু উপসর্গ নিয়ে চলতি বছর ৮৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

আরও পড়ুন:
এনআইডি ছাড়াই টিকা পাবেন বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে ২টি গবেষণা গ্রন্থ প্রকাশ করবে ইউজিসি
এনডিএলআই-এর সঙ্গে সমঝোতা স্মারক সই করবে ইউজিসি
গবেষণার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে ১০০ কোটি টাকা
বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকীতে সম্মেলন করবে ইউজিসি

শেয়ার করুন