কেপিসিএল: মেয়াদ বৃদ্ধির শর্ত চূড়ান্তে আবার বৈঠকের সিদ্ধান্ত

কেপিসিএল: মেয়াদ বৃদ্ধির শর্ত চূড়ান্তে আবার বৈঠকের সিদ্ধান্ত

খুলনায় কেপিসিএলের মেয়াদ পেরিয়ে যাওয়া বিদ্যুৎকেন্দ্র। ছবি: সংগৃহীত

বৈঠকে কোম্পানিগুলোর পক্ষ থেকে এ ক্ষেত্রে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ বিদ্যুৎ কেনার জন্য গ্যারান্টি চাওয়া হয়েছে। তারা বলেছে, ক্যাপাসিটি চার্জ না থাকলে এই বিষয়ে আগে থেকে সিদ্ধান্ত না হলে তাদের পক্ষে কোম্পানি চালানো কঠিন।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত সামিট পাওয়ারের একটি ও কেপিসিএলের দুটিসহ পাঁচটি বিদ্যুৎকেন্দ্রের মেয়াদ বৃদ্ধির ফাইলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুমোদন দিলেও কোম্পানিগুলোর সঙ্গে বিদ্যুৎ বিভাগের আলোচনায় চুক্তির শর্ত এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

সরকার আগের মতো বিদ্যুৎ না কিনলে কেন্দ্রের ভাড়া বা ক্যাপাসিটি চার্জ দিতে চাইছে না। তবে কোম্পানিগুলো ন্যূনতম চার্জ চাইছে। সেটি না দিলে নির্দিষ্ট পরিমাণ বিদ্যুৎ কেনার গ্যারান্টি চাইছে তারা।

বিদ্যুতের দামসহ আরও বেশ কিছু বিষয়েও সমঝোতায় আসা যায়নি। এ কারণে আরও বৈঠক করার বিষয়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকেলে বিদ্যুৎ ভবনে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা হয়। এতে বিদ্যুৎ ও জ্বালানিসংশ্লিষ্ট ১৪টি বিভাগের প্রতিনিধি এবং চারটি বিদ্যুৎ কোম্পানির প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

এই বৈঠকে মধ্যে খুলনায় কেপিসিএলের ১৫৫ মেগাওয়াটের দুটি, নারায়ণগঞ্জের মদনগঞ্জে সামিটের ১০২ মেগাওয়াটের একটি, একই জেলার মেঘনাঘাটে ওরিয়ন গ্রুপের ১০০ মেগাওয়াটের একটি এবং সিদ্ধিরগঞ্জে ডাচ্‌-বাংলার পাওয়ার অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েটের ১০০ মেগাওয়াটের আরও একটি কেন্দ্রের মেয়াদ বাড়ানোর বিষয়টি জানানো হয়।

সরকার ভাড়াভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বা কুইক রেন্টালের মেয়াদ আর না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। তবে কেপিসিএলের বিনিয়োগকারীদের স্বার্থের কথা বিবেচনায় নিয়ে মেয়াদ বাড়াতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির অনুরোধের পর সে অবস্থান থেকে সরে আসে।

কুইকরেন্টাল বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো যে আইনের অধীনে চলেছে, সেই ‘বিদ্যুৎ ও জ্বালানির দ্রুত সরবরাহ বৃদ্ধি (বিশেষ বিধান) (সংশোধন) আইন, ২০১০’ এর মেয়াদ আরও ৫ বছর বাড়ানো হয় গত ১৬ সেপ্টেম্বর।

জাতীয় সংসদ মেয়াদ বৃদ্ধির বিলে সায় দেয়ার পাঁচ দিন পর এই বৈঠক হয় বিদ্যুৎ ভবনে।

সরকার আগেই সিদ্ধান্ত নিয়েছে ‘নো ইলেকট্রিসিটি, নো পেমেন্ট’ ভিত্তিকে কোম্পানিগুলোকে নতুন করে কেন্দ্র চালানোর অনুমতি দেবে। অর্থাৎ তাদের কাছ থেকে যতটুকু বিদ্যুৎ কেনা হবে, ততটুকুর জন্য টাকা দেবে সরকার।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, বৈঠকে কোম্পানিগুলোর পক্ষ থেকে এ ক্ষেত্রে একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ বিদ্যুৎ কেনার জন্য গ্যারান্টি চাওয়া হয়েছে। তারা বলেছে, ক্যাপাসিটি চার্জ না থাকলে এই বিষয়ে আগে থেকে সিদ্ধান্ত না হলে তাদের পক্ষে কোম্পানি চালানো কঠিন।

আবার বিদ্যুতের ইউনিটপ্রতি মূল্য বা ট্যারিফ হার নিয়েও আলোচনা চূড়ান্ত হয়নি। ক্যাপাসিটি চার্জ না থাকায় ট্যারিফ বেশি চেয়েছে কোম্পানিগুলো। অন্যদিকে বিদ্যুৎ বিভাগ তা বর্তমান হারের চেয়ে কমাতে চেয়েছে। তাদের যুক্তি, আগের যে ট্যারিফ নির্ধারণ করা হয়েছিল, তাতে কেন্দ্র স্থাপনসহ নানা ব্যয় হিসাব করা হয়েছিল। এখন নতুন করে কেন্দ্র স্থাপনের খরচ থাকবে না। ফলে কোম্পানির উৎপাদন খরচ কম থাকবে।

তবে বৈঠকের পর কোনো পক্ষই আনুষ্ঠানিক বক্তব্য দিতে রাজি হয়নি।

সরকারের পক্ষে উপস্থিত একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘আজকে ওদের (বিদ্যুৎ কোম্পানি) কথা শুনেছি আমরা। আবার বসতে হবে, একবার না হলে দুইবার।’

অন্য একজন কর্মকর্তা বলেন, ‘অনেক কিছুই তো রেডি আছে। চার্জের বিষয়ে কিছু ন্যাগোশিয়েশন করা লাগবে। আবার বসতে হবে ওদের সঙ্গে।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কেপিসিএলের কোম্পানি সচিব মোজাম্মেল হোসেন কিছু বলতে বলতে পারেননি। বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি এখনও কিছু জানি না।’

ওরিয়ন গ্রুপের কোম্পানি সচিব ফেরদৌস জামান বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ছিলেন। তিনি এখনও আসেননি। এলে জানা যাবে।’

বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের সচিব সাইফুল ইসলাম আজাদ বলেন, ‘আজ একটি বৈঠক হয়েছে। এ ধরনের সিদ্ধান্ত আসতে গেলে একটি মিটিং যথেষ্ট নয়। আজকের বৈঠকে নানা দিক নিয়ে টেকনিক্যাল কমিটির আরেকটি বৈঠক হবে। সেখানে বিষয়গুলো পর্যালোচনা করা হবে। এসব বিষয় ঠিক করতে একের অধিক, এমনকি ৩-৪ টি মিটিং হতে পারে।’

আরও পড়ুন:
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়ছে তিন বছর
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়েনি, কোম্পানির সতর্কবার্তা
কেপিসিএলের আড়াই কোটি শেয়ার হাতবদল হলো কীভাবে
কেপিসিএল: প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী কিনল ৩ কোটি ১৫ লাখ শেয়ার
কেপিসিএল: ফাইল যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে

শেয়ার করুন

মন্তব্য

তৃতীয় প্রান্তিকে ‘হোঁচটেও’ সিটি ব্যাংকের আয়ে প্রবৃদ্ধি

তৃতীয় প্রান্তিকে ‘হোঁচটেও’ সিটি ব্যাংকের আয়ে প্রবৃদ্ধি

রাজধানীতে সিটি ব্যাংকের কেন্দ্রীয় কার্যালয়

অর্ধবার্ষিকে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় ছিল ২ টাকা ৬ পয়সা। আগের বছর এই আয় ছিল ১ টাকা ছিল। অর্থাৎ আয় বাড়ে ১০৬ শতাংশ। তৃতীয় প্রান্তিকে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৯০ পয়সা। যা আগের বছর একই সময় ছিল ১ টাকা ৮৯ পয়সা।

প্রথম দুই প্রান্তিকের চমক তৃতীয় প্রান্তিকে ধরে রাখতে না পারলেও তিন প্রান্তিক মিলিয়ে আয়ে প্রবৃদ্ধি ধরে রাখল সিটি ব্যাংক।

গত জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকটি শেয়ার প্রতি আয় করেছে ২ টাকা ৯৭ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে এই আয় ছিল ২ টাকা ৮৯ পয়সা।

অর্থাৎ আয় বেড়েছে ২.৯৭ শতাংশ।

নিঃসন্দেহে ভালো। তবে দ্বিতীয় প্রান্তিক জুন পর্যন্ত হিসাব বিবেচনায় নিলে বিনিয়োগকারীরা কিছুটা হতাশ হতে পারেন।

অর্ধবার্ষিকে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় ছিল ২ টাকা ৬ পয়সা। আগের বছর এই আয় ছিল ১ টাকা ছিল। অর্থাৎ আয় বাড়ে ১০৬ শতাংশ।

তৃতীয় প্রান্তিকে আয় খুব খারাপ, এমনটা বলার সুযোগ নেই। এই সময়ে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছে ৯০ পয়সা। তবে আগের বছরের একই সময়ের হিসাব বিবেচনায় নিলে হতাশ হতেও পারে।

গত বছরের জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ব্যাংকটি শেয়ার প্রতি আয় করেছিল ১ টাকা ৮৯ পয়সা। অর্থাৎ জুন পর্যন্ত শতভাগ আয় বাড়ানো ব্যাংকটি তৃতীয় প্রান্তিকে এসে আয় করেছে আগের বছরের ৫০ শতাংশ।

বৃহস্পতিবার ব্যাংকটির পরিচালনা পর্ষদের বৈঠকে এই অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুমোদনের পর প্রকাশ করা হয়।

প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যাংকটির সম্পদমূল্যও বেড়েছে। গত ৩০ সেপ্টেম্বর শেয়ার প্রতি সম্পদ ছিল ৩০ টাকা ১১ পয়সা। গত ৩১ ডিসেম্বর এই সম্পদ ছিল ২৭ টাকা ৬৫ পয়সা।

সম্পদমূল্যের চেয়ে কম দামে লেনদেন হওয়া ব্যাংকটি ২০২০ সালে শেয়ার প্রতি ৪ টাকা ২৯ পয়সা আয় করে ১ টাকা ৭৫ পয়সা নগদ ও ৫ শতাংশ, অর্থাৎ প্রতি ২০টি শেয়ারে একটি বোনাস শেয়ার দিয়েছিল।

প্রান্তিক প্রকাশের দিন সিটি ব্যাংকের শেয়ারদর ছিল ২৮ টাকা ২০ পয়সা।

গত এক বছরে ব্যাংকটির শেয়ারদর ২১ টাকা ৭০ পয়সা থেকে ৩৩ টাকা ৬০ পয়সা পর্যন্ত উঠানামা করেছে।

করোনার মধ্যেও গত বছর ব্যাংক খাত অভাবনীয় আয় করে আকর্ষণীয় লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে। চলতি বছর অর্ধবার্ষিকে বেশিরভাগ বাংকই আয় আগের বছরের চেয়ে বাড়াতে পেরেছে। তৃতীয় প্রান্তিকেও একই প্রবণতা দেখা যাচ্ছে।

এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট চারটি ব্যাংকের তৃতীয় প্রান্তিকের আয় প্রকাশ পেল। এর মধ্যে শুরু থেকেই লোকসানে থাকা আইসিবি ইসলামী ব্যাংক এবারও লোকসানের বৃ্ত্তেই আছে। শেয়ারদরে গত এক বছরে উল্লম্ফন হলেও কোম্পানিটি লোকসান কমাতে পারেনি, উল্টো বেড়েছে।

অন্য ব্যাংকগুলোর মধ্যে এসসিসি ব্যাংক ২৩ শতাংশ এবং ইসলামী ব্যাংক ১৬ শতাংশ আয় বাড়াতে পেরেছে।

আরও পড়ুন:
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়ছে তিন বছর
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়েনি, কোম্পানির সতর্কবার্তা
কেপিসিএলের আড়াই কোটি শেয়ার হাতবদল হলো কীভাবে
কেপিসিএল: প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী কিনল ৩ কোটি ১৫ লাখ শেয়ার
কেপিসিএল: ফাইল যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে

শেয়ার করুন

আয় বাড়াল ইসলামী ব্যাংকও

আয় বাড়াল ইসলামী ব্যাংকও

গত করোনার বছরে আগের বছরের চেয়ে বেশি আয় করা ব্যাংকগুলো এবারও জুন পর্যন্ত দ্বিতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত আয়ে চমক দেখায়। দ্বিগুণ, তিন গুণ এমনকি তার চেয়ে বেশি আয় করা ব্যাংকগুলো এখন তৃতীয় প্রান্তিকের হিসাব প্রকাশ করছে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ইসলামী ব্যাংকও আগের বছরের চেয়ে চলতি বছর বেশি আয় করতে পারছে।

গত জানুয়ারি থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৯ মাসে কোম্পানিটি শেয়ারপ্রতি আয় করতে পেরেছে ২ টাকা ৬৭ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে আয় ছিল (ইপিএস) ২ টাকা ৩০পয়সা। আয় বেড়েছে ৩৭ পয়সা বা ১৬ শতাংশ।

এর আগে এনসিসি ব্যাংকের আর্থিক প্রতিবেদনেও আয় বাড়ার বিষয়টি উঠে আসে। এই ব্যাংকটি চলতি বছর তিন প্রান্তিক মিলিয়ে আগের বছর একই সময়ের তুলনায় ২৩ শতাংশ বেশি আয় করেছে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংকগুলো নিয়ে নানা রকম আলোচনা থাকলেও বেশির ভাগ কোম্পানির আয় এবং লভ্যাংশ প্রতিবছরই চমকপ্রদ।

গত করোনার বছরে আগের বছরের চেয়ে বেশি আয় করা ব্যাংকগুলো এবারও জুন পর্যন্ত দ্বিতীয় প্রান্তিক পর্যন্ত আয়ে চমক দেখায়। দ্বিগুণ, তিন গুণ এমনকি তার চেয়ে বেশি আয় করা ব্যাংকগুলো এখন তৃতীয় প্রান্তিকের হিসাব প্রকাশ করছে।

ইসলামী ব্যাংক জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত তিন মাসে শেয়ারপ্রতি আয় করেছে ৫৯ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে এই আয় ছিল ৩৬ পয়সা।

আয়ের পাশাপাশি কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্যও বাড়ছে। ৩০ সেপ্টেম্বর শেয়ারপ্রতি সম্পদ হয়েছে ৪০ টাকা ৫৯ পয়সা। গত ৩০ ডিসেম্বরে এই সম্পদ ছিল ৩৮ টাকা ৮৯ পয়সা।

কোম্পানিটির শেয়ারদর বর্তমানে তার সম্পদের চেয়ে কম। আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশের দিন ১০ টাকা অভিহিত মূল্যের শেয়ার লেনদেন হয়েছে ৩০ টাকায়।

বেসরকারি ব্যাংকের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আমানত ও ঋণদানকারী এই ব্যাংকটির শেয়ারমূল্য গত এক বছর ধরেই স্থিতিশীল। এই সময়ে শেয়ারের সর্বনিম্ন মূল্য ছিল ২৫ টাকা ৪০ পয়সা, আর সর্বোচ্চ মূল্য ছিল ৩২ টাকা।

কোম্পানিটি প্রতিবছরই বেশ ভালো আয় করলেও লভ্যাংশের ইতিহাস খুব একটি ভালো নয়। ২০১৬ সাল থেকে টানা ৫ বছর শেয়ারপ্রতি ১ টাকা করে লভ্যাংশ পেয়েছেন বিনিয়োগকারীরা।

আরও পড়ুন:
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়ছে তিন বছর
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়েনি, কোম্পানির সতর্কবার্তা
কেপিসিএলের আড়াই কোটি শেয়ার হাতবদল হলো কীভাবে
কেপিসিএল: প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী কিনল ৩ কোটি ১৫ লাখ শেয়ার
কেপিসিএল: ফাইল যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে

শেয়ার করুন

সাবমেরিন ক্যাবলে আয়ে চমকের পর সর্বোচ্চ লভ্যাংশ

সাবমেরিন ক্যাবলে আয়ে চমকের পর সর্বোচ্চ লভ্যাংশ

২০১২ সালে তালিকাভুক্তির বছরে শেয়ার প্রতি ২ টাকা লভ্যাংশই এর আগে কোম্পানিটির সর্বোচ্চ লভ্যাংশ ছিল। গত বছরও সম পরিমাণ লভ্যাংশ দিয়েছিল কোম্পানিটি। সে বছর শেয়ারে আয় ছিল ৫ টাকা ৪৯ পয়সা। এবার শেয়ার প্রতি ১১ টাকা ৫৭ পয়সা আয় করে ৩৭ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয়ার ঘোষণা এসেছে।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার পর সবচেয়ে বেশি আয় করে নিজেদের ইতিহাসের সর্বোচ্চ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছে টেলিকম খাতের প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবল কোম্পানি।

গত ৩০ জুন, ২০২১ তারিখে সমাপ্ত অর্থবছরের জন্য শেয়ারধারীদেরকে ৩ টাকা ৭০ পয়সা করে, অর্থাৎ ৩৭ শতাংশ লভ্যাংশ দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

বৃহস্পতিবার পর্ষদ সভায় এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

২০১২ সালে তালিকাভুক্তির বছরে শেয়ার প্রতি ২ টাকা লভ্যাংশই এর আগে কোম্পানিটির সর্বোচ্চ লভ্যাংশ ছিল। গত বছরও সম পরিমাণ লভ্যাংশ দিয়েছিল কোম্পানিটি।

সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরে কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি আয় করেছে ১১ টাকা ৫৭ পয়সা। এটিও তাদের ইতিহাসের সর্বোচ্চ। আগের বছর এই আয় ছিল ৫ টাকা ৪৯ পয়সা।

কোম্পানিটির আয় বেড়েছে দ্বিতীয় সাবমেরিন ক্যাবলে যুক্ত হওয়ার কারণে। এরপর আয় কীভাবে বেড়েছে, তা ২০১৬ সালের পর থেকে আর্থিক হিসাবে স্পষ্ট হবে।

২০১৬ সালে শেয়ার প্রতি আয় হয়েছিল এক টাকা। পরের বছর তা কিছুটা বেড়ে হয় ১ টাকা ৯৩ পয়সা। ২০১৮ সালে শেয়ার প্রতি আয় কমে যায়। ওই বছর এই আয় হয় ৪৪ পয়সা।

তবে এরপর থেকে আয় বাড়তে থাকে। ২০১৯ সালে শেয়ারে ৩ টাকা ৫৫ পয়সা আর ২০২০ সালে আয় দাঁড়ায় ৫ টাকা ৮০ পয়সা।

২০২১ সালে কোম্পানির আয় প্রতি প্রান্তিকেই বেড়েছে। ২০২০ সালের জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রথম প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি ২ টাকা ১ পয়সা, অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত দ্বিতীয় প্রান্তিকে ২ টাকা ৩৬ পয়সা, জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত তৃতীয় প্রান্তিকে ৩ টাকা ২০ পয়সা এবং এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত চতুর্থ প্রান্তিকে আয় হয় ৪ টাকা।

কোম্পানিটি তৃতীয় সাবমেরিক ক্যাবলে যুক্ত হওয়ার সিদ্ধান্তও নিয়েছে।

কোম্পানিটির আয়ের মতো সম্পদমূল্যেও উল্লম্ফন হয়েছে। গত ৩০ জুন শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য ছিল ৫২ টাকা ৪৯ পয়সা। আগের বছর এই সম্পদমূল্য ছিল ৪০ টাকা ৯৩ পয়সা।

প্রতি প্রান্তিকেই আয় বাড়তে থাকার পর কোম্পানিটির শেয়ার মূল্যও বাড়তে থাকে। গত এক বছরে ১২৫ টাকা ১০ পয়সা থেকে কোম্পানিটির শেয়ার দর ২৩৬ টাকা পর্যন্ত উঠে। তবে লভ্যাংশ ঘোষণার দিন দাম ছিল ২১২ টাকা ৫০ পয়সা।

কোম্পানিটির লভ্যাংশ সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট ঠিক করা হয়েছে আগামী ১১ নভেম্বর। অর্থাৎ সেদিন যাদের হাতে শেয়ার থাকবে, তারাই পাবেন লভ্যাংশ। আগামী ৭ ডিসেম্বর বার্ষিক সাধারণ সভায় এই লভ্যাংশ চূড়ান্ত হবে।

আরও পড়ুন:
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়ছে তিন বছর
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়েনি, কোম্পানির সতর্কবার্তা
কেপিসিএলের আড়াই কোটি শেয়ার হাতবদল হলো কীভাবে
কেপিসিএল: প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী কিনল ৩ কোটি ১৫ লাখ শেয়ার
কেপিসিএল: ফাইল যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে

শেয়ার করুন

১০ টাকার শেয়ারে ১৪ টাকা লোকসান

১০ টাকার শেয়ারে ১৪ টাকা লোকসান

তিন মাস আগে থেকে কোম্পানিটির শেয়ারদরে উত্থান ঘটে। গত ২৬ জুন কোম্পানিটির শেয়ারদর ছিল ৫ টাকা ৫০ পয়সা। সেখান থেকে টানা বাড়তে বাড়তে গত ৭ সেপ্টেম্বর গিয়ে দাঁড়ায় ১১ টাকা ৭০ পয়সা। পরদিন থেকে শুরু হয় দরপতন। ৫ সপ্তাহের ব্যবধানে সর্বোচ্চ দর থেকে শেয়ারদর কমেছে ৪ টাকা ২০ পয়সা।  

পর্ষদ পুনর্গঠনের খবরে শেয়ারদরে লাফ দিয়ে হাজারো বিনিয়োগকারীর টাকা আটকে যাওয়া ফাস ফাইন্যান্সের ২০২০ সালের আর্থিক হিসাব চরমভাবে হতাশা করেছে বিনিয়োগকারীদেরকে।

অর্থবছর শেষ হওয়ার ১০ মাস পর ডাকা পর্ষদ সভা শেষে জানানো হয়েছে ২০২০ সালের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত শেয়ার প্রতি ১৪ টাকা ৬১ পয়সা লোকসান হয়েছে কোম্পানিটির। বৃহস্পতিবার পর্ষদ সভা শেষে বিনিয়োগকারীদের জন্য কোনো লভ্যাংশও ঘোষণা করা হয়নি।

আলোচিত ব্যাংকার পি কে হালদার কেলেঙ্কারিতে ডুবে যাওয়া কোম্পানিটিকে টেনে তুলতে নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি পরিচালনা পর্ষদ পুনর্গঠন করে দিয়েছে। এরই মধ্যে একটি বড় কোম্পানিকে প্রস্তাব দেয়া হয়েছে এর দায়িত্ব নিতে। তবে সেই কোম্পানিটি কোনো আগ্রহ দেখায়নি।

তবে এই প্রস্তাবকে কেন্দ্র করে তিন মাস আগে থেকে কোম্পানিটির শেয়ারদরে উত্থান ঘটে। গত ২৬ জুন কোম্পানিটির শেয়ারদর ছিল ৫ টাকা ৫০ পয়সা। সেখান থেকে টানা বাড়তে বাড়তে গত ৭ সেপ্টেম্বর গিয়ে দাঁড়ায় ১১ টাকা ৭০ পয়সা।

পরদিন থেকে শুরু হয় দরপতন। ৫ সপ্তাহের ব্যবধানে সর্বোচ্চ দর থেকে শেয়ারদর কমেছে ৪ টাকা ২০ পয়সা।

যখন শেয়ারদর বাড়ছিল, তখন তাতে বিনিয়োগ বাড়িয়ে চলেছিলেন বিনিয়োগকারীরা। বিপুল সংখ্যক শেয়ার কেনাবেচা হতে থাকে। আর বেশি দামে শেয়ার কিনে আটকা পড়েছেন হাজার হাজার বিনিয়োগকারী।

যখন দাম বাড়ছিল, তখন গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়ে যে, কোম্পানির লোকসান কমে আসবে। কিন্তু দেখা গেছে উল্টো চিত্র। গত বছরের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি লোকসান ছিল ৮ টাকা ৫৪ পয়সা। পরের তিন মাসে অক্টোবর থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত শেয়ার প্রতি লোকসান হয় ৬ টাকা ৭ পয়সা।

২০১৯ সালে কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি ১০ টাকা ১২ পয়সা লোকসান দিয়েছিল পি কে হালদার কেলেঙ্কারির কারণে।

পরপর দুই বছর বড় লোকসান দেয়ার কারণে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য শূন্য হয়ে উল্টো ঋণাত্মক হয়ে গেছে।

গত ৩০ ডিসেম্বর শেয়ার প্রতি দায় দাঁড়ায় ১৯৯ টাকা ৭০ পয়সা। আগের বছর শেয়ার প্রতি সম্পদ ছিল ১৬৯ টাকা ৪০ পয়সা।

কোম্পানিটির লভ্যাংশ সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ১৪ নভেম্বর। আগামী ৩০ নভেম্বর কোম্পানিটির বার্ষিক সাধারণ সভা ডাকা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়ছে তিন বছর
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়েনি, কোম্পানির সতর্কবার্তা
কেপিসিএলের আড়াই কোটি শেয়ার হাতবদল হলো কীভাবে
কেপিসিএল: প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী কিনল ৩ কোটি ১৫ লাখ শেয়ার
কেপিসিএল: ফাইল যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে

শেয়ার করুন

লোকসান আরও বেড়েছে আইসিবি ব্যাংকের

লোকসান আরও বেড়েছে আইসিবি ব্যাংকের

গত বছর তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটি লোকসানের বৃত্ত থেকে বের হয়ে এসেছিল। সে বছর জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রথমবারের মতো শেয়ার প্রতি ১৭ পয়সা আয় করে চমক দেখায়। তবে অর্থবছর শেষে সেই লোকসানের বৃত্তেই থাকে।

শেয়ারদর বাড়তে থাকলেও পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের আর্থিক স্বাস্থ্যের কোনো উন্নতি হয়নি।

টানা তৃতীয় প্রান্তিকে ব্যাংকটি লোকসান দিল আর এর মধ্য দিয়ে গত জানুয়ার থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শেয়ার প্রতি লোকসান দাঁড়িয়েছে ৪৭ পয়সা। আগের বছর এই সময়ে লোকসান ছিল ১৫ পয়সা।

এর মধ্যে ৩২ পয়সা লোকসান ছিল জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত। আর জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত থেকে তিন মাসে লোকসান হয়েছে ১৫ পয়সা।

বৃহস্পতিবার কোস্পানির পরিচালনা পর্ষদের বৈঠক শেষে এই অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে।

গত বছর তৃতীয় প্রান্তিকে কোম্পানিটি লোকসানের বৃত্ত থেকে বের হয়ে এসেছিল। সে বছর জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত প্রথমবারের মতো শেয়ার প্রতি ১৭ পয়সা আয় করে চমক দেখায়। তবে অর্থবছর শেষে সেই লোকসানের বৃত্তেই থাকে।

লোকসানের কারণে লভ্যাংশ দিতে না পারলেও গত এক বছরে ব্যাংকটির শেয়ার মূল্যে উল্লম্ফন হয়েছে। পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বেশিরভাগ ব্যাংক গত বছর আকর্ষণীয় লভ্যাংশ ঘোষণা করলেও সেগুলোর শেয়ার মূল্য বেড়েছে কমই।

বিপরীতে লভ্যাংশ দিতে না পারা আইসিবি ইসলামী ব্যাংকের শেয়ারদর এই সময়ে দ্বিগুণ হয়ে যায়।

গত বছরের জুলাইয়ে শেয়ারদর ২ টাকা ৮০ পয়সা থাকলেও বর্তমান দর ৫ টাকা ৫০ পয়সা।

তবে মাঝে একবার শেয়ারদর বেড়ে ৭ টাকা ৪০ পয়সা হয়ে যায়। ব্যাংকটি মুনাফায় ফিরছে, এমন গুঞ্জনের পাশাপাশি মালিকানা বদলের গুজব ছড়িয়ে পড়ার পর শেয়ারমূল্য বাড়তে থাকে। পাশাপাশি বাড়ে লেনদেন।

তবে গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া দর সংশোধনে দুর্বল নানা কোম্পানির পাশাপাশি আইসিবি ইসলামীও ব্যাপক দর হারিয়েছে। মাঝে দাম এক পর্যায়ে ৪ টাকা ৭০ পয়সাতেও নেমে গিয়েছিল। পরে কিছুটা বাড়ে।

কোম্পানিটির লোকসানের পাশাপাশি শেয়ার প্রতি দায়ও বাড়ছে। এই কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি কোনো সম্পদ নেই। উল্টো দায় আছে ১৮ টাকা ১ পয়সা। এটি গত সেপ্টেম্বরের হিসাব। গত বছরের ডিসেম্বরে এই দায় ছিল ১৭ টাকা ৫৪ পয়সা।

আরও পড়ুন:
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়ছে তিন বছর
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়েনি, কোম্পানির সতর্কবার্তা
কেপিসিএলের আড়াই কোটি শেয়ার হাতবদল হলো কীভাবে
কেপিসিএল: প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী কিনল ৩ কোটি ১৫ লাখ শেয়ার
কেপিসিএল: ফাইল যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে

শেয়ার করুন

ন্যাশনাল পলিমারে লভ্যাংশ কমল

ন্যাশনাল পলিমারে লভ্যাংশ কমল

২০১১ সাল থেকে টানা বোনাস শেয়ার দিয়ে আসা কোম্পানিটি গত বছরই কেবল ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছিল। এবার তা ১০ শতাংশ করা হয়েছে।

আগের বছরের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় বাড়ার পর লভ্যাংশ কমিয়েছে পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত প্রকৌশল খাতের কোম্পানি ন্যাশনাল পলিমার।

গত ৩০ জুন সমাপ্ত অর্থবছরের জন্য শেয়ারপ্রতি ২ টাকা ৮২ পয়সা আয় করে ১ টাকা লভ্যাংশ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানিটি।

বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদের সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

কোম্পানির ইতিহাসে এটি সর্বোচ্চ নগদ লভ্যাংশ। ২০১১ সাল থেকে টানা বোনাস শেয়ার দিয়ে আসা কোম্পানিটি গত বছরই কেবল ১৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ ঘোষণা করেছিল।

ওই বছর কোম্পানিটি শেয়ারপ্রতি ২ টাকা ৫০ পয়সা আয় করে ১ টাকা ৫০ পয়সা লভ্যাংশ দিয়েছিল।

ওই বছর শেষে কোম্পানিটির মোট আয় শেয়ারপ্রতি ৪ টাকা ১২ পয়সা হয়েছিল। তবে পরে একটি শেয়ারের বিপরীতে একটি রাইট শেয়ার যুক্ত হওয়ার পর আয় সমন্বিত হয়ে কমে যায়। আবার প্রতি শেয়ারে ৫ টাকা প্রিমিয়াম যুক্ত হয়।

১০০ শতাংশ রাইট শেয়ার যুক্ত হওয়ার পর কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য কিছুটা কমেছে। গত ৩০ জুন এই সম্পদ দাঁড়িয়েছে ৩০ টাকা ৪৯ পয়সা। আগের বছর তা ছিল ৩৫ টাকা ৮৭ পয়সা।

এই লভ্যাংশসংক্রান্ত রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে আগামী ১৪ নভেম্বর। অর্থাৎ সেদিন যাদের হাতে শেয়ার থাকবে, তারাই পাবে এই লভ্যাংশ।

এই লভ্যাংশ অনুমোদনের জন্য বার্ষিক সাধারণ সভা ডাকা হয়েছে আগামী ২২ ডিসেম্বর।

কোম্পানিটির শেয়ার দর গত এক বছরে ৫২ টাকা ৪০ পয়সা থেকে ৭৭ টাকা ৭০ পয়সা পর্যন্ত ওঠানামা করেছে। তবে তৃতীয় প্রান্তিকের আয় সংশোধনকে কেন্দ্র করে শেয়ারমূল্য পরে কমে যায়।

লভ্যাংশ ঘোষণার দিন শেয়ার দর ছিল ৫৬ টাকা ৬০ পয়সা।

আরও পড়ুন:
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়ছে তিন বছর
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়েনি, কোম্পানির সতর্কবার্তা
কেপিসিএলের আড়াই কোটি শেয়ার হাতবদল হলো কীভাবে
কেপিসিএল: প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী কিনল ৩ কোটি ১৫ লাখ শেয়ার
কেপিসিএল: ফাইল যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে

শেয়ার করুন

তালিকাভুক্তির পর সর্বনিম্ন লভ্যাংশ বিবিএস ক্যাবলস

তালিকাভুক্তির পর সর্বনিম্ন লভ্যাংশ বিবিএস ক্যাবলস

কোম্পানিটি ২০২০ সালে শেয়ার প্রতি ৬ টাকা ৬৬ পয়সা আয় করে ১০ শতাংশ বোনাস ও ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল। ২০১৯ সালেও লভ্যাংশ ছিল সম পরিমাণ, ওই বছর শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৮ টাকা ১৭ পয়সা। ২০১৮ সালে শেয়ার প্রতি ৮ টাকা ৮ পয়সা আয় করে ১০ শতাংশ নগদের পাশাপাশি ১৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার দিয়েছিল কোম্পানিটি। ২০১৭ সালে তালিকাভুক্তির বছরে শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৪ টাকা ১২ পয়সা। প্রথম বছরে শেয়ার প্রতি ৫০ পয়সা নগদের পাশাপাশি ১৫ শতাংশ বোনাস পেয়েছিলেন বিনিয়োগকারীরা।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত প্রকৌশল খাতের কোম্পানি বিবিএস ক্যাবলস আগের বছরের চেয়ে কম আয় করে লভ্যাংশ কমিয়েছে।

গত ৩০ জুন সমাপ্ত অর্থ বছরে শেয়ার প্রতি ৪ টাকা ৮৪ পয়সা আয় করে এক টাকা নগদ ও প্রতি ২০টি শেয়ারে একটি বোনাস শেয়ার দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ।

অর্থাৎ এবার ১০ শতাংশ নগদ ও ৫ শতাংশ বোনাস মিলিয়ে ১৫ শতাংশ লভ্যাংশ পাবে বিবিএস ক্যাবলসের বিনিয়োগকারীরা, যা ২০১৭ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির পর সবচেয়ে কম লভ্যাংশ।

বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়।

কোম্পানিটি ২০২০ সালে শেয়ার প্রতি ৬ টাকা ৬৬ পয়সা আয় করে ১০ শতাংশ বোনাস ও ১০ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল। ২০১৯ সালেও লভ্যাংশ ছিল সম পরিমাণ, ওই বছর শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৮ টাকা ১৭ পয়সা।

২০১৮ সালে শেয়ার প্রতি ৮ টাকা ৮ পয়সা আয় করে ১০ শতাংশ নগদের পাশাপাশি ১৫ শতাংশ বোনাস শেয়ার দিয়েছিল কোম্পানিটি। ২০১৭ সালে তালিকাভুক্তির বছরে শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৪ টাকা ১২ পয়সা। প্রথম বছরে শেয়ার প্রতি ৫০ পয়সা নগদের পাশাপাশি ১৫ শতাংশ বোনাস পেয়েছিলেন বিনিয়োগকারীরা।

কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য কিছুটা বেড়েছে। গত ৩০ জুন এই সম্পদমূল্য ছিল ৩৩ টাকা ৫০ পয়সা। আগের বছর তা ছিল ৩২ টাকা ৫২ পয়স।

লভ্যাংশ সংক্রান্ত রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ১৪ নভেম্বর। অর্থাৎ সেদিন যাদের হাতে শেয়ার থাকবে, তারাই এই লভ্যাংশ পাবে। আগামী ২০ ডিসেম্বর বার্ষিক সাধারণ সভায় লভ্যাংশ চূড়ান্ত হবে।

আরও পড়ুন:
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়ছে তিন বছর
কেপিসিএলের মেয়াদ বাড়েনি, কোম্পানির সতর্কবার্তা
কেপিসিএলের আড়াই কোটি শেয়ার হাতবদল হলো কীভাবে
কেপিসিএল: প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারী কিনল ৩ কোটি ১৫ লাখ শেয়ার
কেপিসিএল: ফাইল যাচ্ছে প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে

শেয়ার করুন