পুলিশ পোশাকে টিকটক, লাইকি, ফেসবুক ভিডিও নয়

পুলিশ পোশাকে টিকটক, লাইকি, ফেসবুক ভিডিও নয়

পুলিশের পোশাক পরে টিকটক, লাইকি, ফেসবুক ভিডিও তৈরিতে বাহিনীর সদস্যদের সতর্ক করেছে পুলিশ সদরদপ্তর। ছবি: সংগৃহীত

নির্দেশনায় বলা হয়, ‘পুলিশের পোশাক ব্যবহার করে, অথবা পুলিশ বিষয়ক কোনো পোস্ট সামাজিক মাধ্যমে (ফেইসবুক) আপলোড করার ক্ষেত্রে অতি সতর্ক থাকতে হবে। পুলিশের পোশাক ব্যবহার করে টিকটক, লাইকির মতো ভিডিও শেয়ার করা যাবে না।’

পুলিশের পোশাক পরা অবস্থায় টিকটক, লাইকির মতো অ্যাপ ব্যবহার করে ভিডিও বানানো এবং শেয়ার করার ক্ষেত্রে সদস্যদের আবারও সতর্ক করেছে ঢাকা মেট্রো পলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

এ ছাড়া পুলিশ সদস্যদের বেতন থেকে বিভিন্ন প্রকার টাকা কাটার বিষয় নিয়েও বিস্তারিত বলা হয়েছে।

সম্প্রতি ডিএমপি সদর দপ্তর থেকে বিভিন্ন ইউনিটগুলোতে এ নির্দেশনা দেয়া হয়। এর আগেও একাধিকবার সামাজিক যোগযোগ মাধ্যম ব্যবহার নিয়ে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে বাহিনীটির সদস্যদের সতর্ক করা হয়েছিল।

অন্তত এক সপ্তাহ আগে দেয়া এই নির্দেশনার বিষয়টি তেজগাঁও, রমনা ও লালবাগ বিভাগের একাধিক কর্মকর্তা নিশ্চিত করেছেন। তবে তারা নিজেরা কোনো মন্তব্য না করে মিডিয়া শাখা থেকে বক্তব্য নেয়ার পরামর্শ দেন।

পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (এআইজি-মিডিয়া) মো. কামরুজ্জামান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘ফেসবুক, টিকটক, লাইকির মতো অ্যাপ ব্যবহারে পুলিশ সদস্যদের আগেও সতর্ক করা হয়েছে। আর বেতন থেকে যে অংশ কাটা হয়, তা পুলিশের কল্যাণেই ব্যয় হয়ে থাকে। কোনোভাবেই সেগুলো অপ্রাসঙ্গিক নয়।’

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার নিয়ে সতর্কবার্তায় বলা হয়, ‘ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের কতিপয় সদস্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার করে রাষ্ট্রবিরোধী বা ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন উসকানিমূলক বক্তব্য প্রচার করছে। এ ধরনের কার্যকলাপ রোধে পোস্টদাতা চিহ্নিত করে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের সিদ্ধান্ত হয়েছে।’

নির্দেশনায় আরও বলা হয়, ‘বিভিন্ন রোল কল, সভা, কল্যাণ সভার মাধ্যমে সরকারি প্রতিষ্ঠানের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহার নির্দেশিকা-২০১৯’ ফোর্সদেরকে বুঝিয়ে বলতে হবে। সে নির্দেশিকা অনুযায়ী, ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা ফোর্সদের সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার পর্যবেক্ষণ করবেন।

নির্দেশনার শেষে পুলিশের পোশাক পরে ফেসবুকে বিভিন্ন পোস্ট আপলোড ও টিকটক, লাইকির বিষয়ে স্পষ্ট করা হয়েছে।

এতে বলা হয়, ‘পুলিশের পোশাক ব্যবহার করে অথবা পুলিশ বিষয়ক কোনো পোস্ট সামাজিক মাধ্যম (ফেইসবুক) আপলোড করার ক্ষেত্রে অতি সতর্ক থাকতে হবে। পুলিশের পোশাক ব্যবহার করে টিকটক, লাইকির মতো ভিডিও শেয়ার করা যাবে না।’

এ ছাড়া পুলিশ সদস্যদের বেতর থেকে নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ কেটে রাখার বিষয়েও ব্যাখ্যা দিয়েছে ডিএমপি।

ডিএমপি থেকে পাঠানো সতর্কবার্তায় ‘বেতন হতে বিভিন্ন প্রকার কর্তন সংক্রান্ত’ একটি বিষয়ও উল্লেখ করা হয়েছে।

যাতে বলা হয়, ‘ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশে কর্মরত বিভিন্ন পুলিশ সদস্য বেতন হতে বিভিন্ন অংশ কাটা নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় নেতিবাচক পোস্ট, কমেন্ট করে পুলিশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করছেন অনেকেই। বেতন হতে যে অর্থ কাটা হয়, তা সদস্যদের কল্যাণে ব্যয় হয়। অপ্রাসঙ্গিক কোনো কিছু কাটা হয় না।’

এতে আরও বলা হয়েছে, ‘বর্তমানে কমিউনিটি ব্যাংক দুই বছর অতিক্রম করছে। ব্যাংকটির শেয়ারের জন্য বেতনের যে অংশ কাটা হয়েছিল তা আগামী ১ বছর পর লভ্যাংশে যাবে, কারণ ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী প্রথম তিন বছর কোনো লভ্যাংশ দেয়া যায় না। যারা অবসরে যাবেন তারা আবেদন সাপেক্ষে বিনোয়োগ টাকা উত্তোলন করে শেয়ার প্রত্যাহার করতে পারবেন।’

আরও পড়ুন:
দায়িত্বের বাইরে পার্কে, ২ পুলিশ প্রত্যাহার
আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিটে মিলছে সুফল
‘কনস্টেবল নিয়োগে লেনদেন হলে তাৎক্ষণিক গ্রেপ্তার’
ছেলের সন্ধানে মায়ের আকুতি
পুলিশের স্ত্রী হত্যা, গ্রেপ্তার ৪

শেয়ার করুন

মন্তব্য

শফিকুল ডিএমপি কমিশনার থাকছেন আরও এক বছর

শফিকুল ডিএমপি কমিশনার থাকছেন আরও এক বছর

ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম। ফাইল ছবি

পুলিশ সদরদপ্তর ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন। তারা জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিয়োগের সারসংক্ষেপ অনুমোদন দিয়েছেন। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ জার্মানি থেকে ফেরার পর তিনি সই করলেই আদেশ জারি করা হবে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) কমিশনার হিসেবে মোহা. শফিকুল ইসলামকে আরও এক বছর রাখতে যাচ্ছে সরকার। অবসরোত্তর ছুটিতে না গিয়ে এ দায়িত্বে বাড়তি এক বছর তিনি থাকবেন।

আগামী ২৯ অক্টোবর শফিকুলের বয়স ৫৯ বছর পূর্ণ হবে। এর পরদিন থেকে অবসরোত্তর ছুটিতে যাওয়ার কথা তার। কিন্তু এই অবসরোত্তর ছুটি বাতিল করে আবার ডিএমপি কমিশনার হিসেবে চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হয়েছে।

পুলিশ সদরদপ্তর ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা বিষয়টি নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেছেন। তারা জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিয়োগের সারসংক্ষেপ অনুমোদন দিয়েছেন। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ জার্মানি থেকে ফেরার পর তিনি সই করলেই আদেশ জারি করা হবে।

ডিএমপির একজন ঊর্ধতন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, ‘ফাইলটি এখন স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আছে। মহামান্য রাষ্ট্রপতি দেশে ফেরার পর আগামী রোববার বা সোমবারে নিয়োগের প্রজ্ঞাপন আসতে পারে।’

গত বৃহস্পতিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ থেকে জারি করা এক প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়, বর্তমান ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম অবসরে যাচ্ছেন। সরকারি বিধি অনুযায়ী, বয়স ৫৯ বছর পূর্ণ হতে যাওয়ায় তাকে অবসরে পাঠানোর সিদ্ধান্ত হয়েছে। আগামী ২৯ অক্টোবর ৫৯ বছর পূর্ণ হবে শফিকুলের।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, চলতি বছরের ৩০ অক্টোবর থেকে ২০২২ সালের ২৯ অক্টোবর পর্যন্ত শফিকুলকে এক বছরের অবসর ও অবসরোত্তর ছুটি দেয়া হয়েছে। নতুন প্রজ্ঞাপনে ওই ছুটি বাতিল হবে বলে।

ডিএমপি কমিশনার হওয়ার আগে শফিকুল ইসলাম সিআইডির অতিরিক্ত আইজিপি হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। তিনি ১৯৮৯ সালে অষ্টম বিসিএস (পুলিশ) ক্যাডারে সহকারী পুলিশ সুপার হিসেবে পুলিশে যোগ দেন।

চাকরি জীবনে শফিকুল পুলিশ সুপার হিসেবে নারায়ণগঞ্জ, পটুয়াখালী, সুনামগঞ্জ ও কুমিল্লা জেলায় দায়িত্ব পালন করেন।

তিনি চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশের কমিশনার, চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি, ঢাকা রেঞ্জের ডিআইজি, অ্যান্টি টেররিজম ইউনিটের প্রধান (অতিরিক্ত আইজিপি), পুলিশ সদরপ্তরের অতিরিক্ত আইজিপি (এইচআরএম) হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

পেশাদারত্ব ও দক্ষতার জন্য তিনি একাধিকবার বিপিএম পদক পান।

শফিকুল ইসলামের জন্ম চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গায়। ১৯৮৬ সালে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএসসি (সম্মান) পাস করেন তিনি।

আরও পড়ুন:
দায়িত্বের বাইরে পার্কে, ২ পুলিশ প্রত্যাহার
আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিটে মিলছে সুফল
‘কনস্টেবল নিয়োগে লেনদেন হলে তাৎক্ষণিক গ্রেপ্তার’
ছেলের সন্ধানে মায়ের আকুতি
পুলিশের স্ত্রী হত্যা, গ্রেপ্তার ৪

শেয়ার করুন

ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবিতে প্রজন্ম ’৭১

ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধের দাবিতে প্রজন্ম ’৭১

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে মানববন্ধনে প্রজন্ম ’৭১

সংগঠনটির যুগ্ম সম্পাদক নুজহাত চৌধুরী শম্পা বলেন, ‘বাংলাদেশ আমাদের বাবাদের রক্তে রঞ্জিত পবিত্র ভূমি। বাংলাদেশকে অসম্প্রদায়িক রাখব। তার জন্য প্রয়োজন হলে রক্তও দেব।’

সাম্প্রদায়িকতা রুখতে পাঁচ দফা দাবি জানিয়েছে মুক্তিযুদ্ধে শহীদদের সন্তানদের সংগঠন প্রজন্ম ’৭১। ১৯৭২ সালের সংবিধান ফিরিয়ে আনারও আহ্বান জানিয়েছে সংগঠনটি।

জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে শুক্রবার সকালে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এসব দাবি জানানো হয়।

ধর্মভিত্তিক রাজনীতি নিষিদ্ধ করা ও রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বাতিলসহ সংগঠনের অন্য দাবিগুলো হলো সব ধর্মের মানুষকে নির্ভয়ে ধর্মীয় উৎসব পালনের নিশ্চয়তা দিতে হবে। এ ছাড়া স্কুলপর্যায়ে পাঠ্যপুস্তক সাম্প্রদায়িকতামুক্ত করে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস অবশ্যই পাঠ্য করতে হবে।

মানববন্ধনে যুগ্ম সম্পাদক নুজহাত চৌধুরী শম্পা বলেন, ‘অসাম্প্রদায়িকতাকে প্রগতিশীল বাঙালি জাতীয়তাবাদে উদ্বুদ্ধ করে গণতান্ত্রিক বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন। প্রতিবছর আমরা দেখছি পূজামণ্ডপে হামলা করতে। আমরা বারবার ফিনিক্স পাখির মতো উঠে দাঁড়াব। আমরা এ দেশ ছাড়ব না।

‘বাংলাদেশ আমাদের বাবাদের রক্তে রঞ্জিত পবিত্র ভূমি। বাংলাদেশকে অসম্প্রদায়িক রাখব। তার জন্য প্রয়োজন হলে রক্তও দেব।’

মানববন্ধনে বক্তারা জানান, শুধু আইন প্রয়োগ করে সাম্প্রদায়িক রাজনীতির সংস্কৃতি বন্ধ করা যাবে না। বঙ্গবন্ধু প্রণীত ১৯৭২-এর সংবিধানকে উপেক্ষা করা হয়েছে। সেই সঙ্গে সাম্প্রদায়িক সংস্কৃতি ও রাজনীতির চর্চাকে অবাধ করা হয়েছে সমাজের সবস্তরে।

গত বছর বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যবিরোধী সন্ত্রাসও এই সাম্প্রদায়িক রাজনীতির ধারাবাহিকতা। দেশের শিক্ষাব্যবস্থায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনাসংশ্লিষ্ট কোনো সিলেবাস প্রণয়ন হয়নি, বরং সাম্প্রদায়িকতার বীজ বপন করা হয়েছে।

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন সংগঠনটির সভাপতি আসিফ মুনীর তন্ময়, সাধারণ সম্পাদক কাজী সাইফুদ্দিন আব্বাস, যুগ্ম সম্পাদক বশীর আহমেদসহ অনেকে।

আরও পড়ুন:
দায়িত্বের বাইরে পার্কে, ২ পুলিশ প্রত্যাহার
আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিটে মিলছে সুফল
‘কনস্টেবল নিয়োগে লেনদেন হলে তাৎক্ষণিক গ্রেপ্তার’
ছেলের সন্ধানে মায়ের আকুতি
পুলিশের স্ত্রী হত্যা, গ্রেপ্তার ৪

শেয়ার করুন

পল্টনের জামান টাওয়ারের আগুন নিয়ন্ত্রণে

পল্টনের জামান টাওয়ারের আগুন নিয়ন্ত্রণে

প্রতীকী ছবি

ফায়ার সার্ভিস জানায়, শুক্রবার বেলা ১টা ১২ মিনিটে আগুন ধরার খবর আসে। বাহিনীর সদস্যরা বেলা ১টা ২৮ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

রাজধানীর পুরানা পল্টনের জামান টাওয়ারে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে এসেছে।

ফায়ার সার্ভিস জানায়, শুক্রবার বেলা ১টা ১২ মিনিটে আগুন ধরার খবর আসে। বাহিনীর সদস্যরা বেলা ১টা ২৮ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

ফায়ার সার্ভিস সদর দপ্তরের ডিউটি অফিসার খালেদা ইয়াসমিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বেলা ১ টা ১২ মিনিটে খবর পাই রাজধানীর পুরানা পল্টনের ১০ তলাবিশিষ্ট জামান টাওয়ারের চতুর্থ তলায় অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ওই খবরে মোট চারটি ইউনিট পাঠানো হয়।

‘বেলা ১টা ২৮ মিনিটে আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। আগুনের কারণ ও ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ প্রাথমিকভাবে জানা যায়নি।’

আরও পড়ুন:
দায়িত্বের বাইরে পার্কে, ২ পুলিশ প্রত্যাহার
আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিটে মিলছে সুফল
‘কনস্টেবল নিয়োগে লেনদেন হলে তাৎক্ষণিক গ্রেপ্তার’
ছেলের সন্ধানে মায়ের আকুতি
পুলিশের স্ত্রী হত্যা, গ্রেপ্তার ৪

শেয়ার করুন

সদিচ্ছা থাকলে হিন্দুদের ওপর হামলা ঠেকানো যেত

সদিচ্ছা থাকলে হিন্দুদের ওপর হামলা ঠেকানো যেত

জাতীয় প্রেস ক্লাবে প্রতিবাদ কর্মসূচিতে জাতীয় হিন্দু মহাজোটের সহযোগী সংগঠন জাতীয় হিন্দু ছাত্র-যুব মহাজোট। ছবি: নিউজবাংলা

হিন্দুদের ওপর হামলা নিয়ে জাতীয় হিন্দু মহাজোটের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সুধাংশু চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, ‘প্রশাসনের সদিচ্ছা থাকলে এই ঘটনা এড়ানো যেত। প্রশাসনের মধ্যে এখনও ঘাপটি মেরে লুকিয়ে আছে মৌলবাদী চক্র।’

প্রশাসনের সদিচ্ছা থাকলে দুর্গাপূজার সময় সারা দেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা ঠেকানো যেত বলে মনে করছে জাতীয় হিন্দু মহাজোট।

জাতীয় প্রেস ক্লাবে শুক্রবার হিন্দু মহাজোট আয়োজিত প্রতিবাদ সভা ও বিক্ষোভ সমাবেশে এমন মত দেন সংগঠনটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি সুধাংশু চন্দ্র বিশ্বাস।

তিনি বলেন, ‘দুর্গাপূজার সময় সারা দেশে হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের ওপর সহিংসতা কোনো সাধারণ ঘটনা নয়; বরং এটা হিন্দু ধর্মের ওপর সুস্পষ্ট আঘাত।’

দুর্গাপূজার মধ্যে প্রথমে কুমিল্লা শহরে একটি মন্দিরে কোরআন রাখাকে কেন্দ্র করে হিন্দুদের পূজামণ্ডপ ভাঙচুর করা হয়। পরে নোয়াখালী, বরিশাল, রংপুরসহ বিভিন্ন স্থানে হিন্দুদের বাড়িঘর ও মন্দিরে হামলা হয়।

এ নিয়ে সুধাংশু বলেন, ‘প্রশাসনের সদিচ্ছা থাকলে এই ঘটনা এড়ানো যেত। প্রশাসনের মধ্যে এখনও ঘাপটি মেরে লুকিয়ে আছে মৌলবাদী চক্র।

‘সরকারের দীর্ঘদিন ধরে সংখ্যালঘু নির্যাতনের প্রশ্নে নমনীয় নীতির কারণে আজকের এই অবস্থা তৈরি হয়েছে।’

হিন্দু মহাজোটের ভাষ্য, দেশে হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে হতাশা বাড়ছে। বিভিন্ন জায়গায় এখনও মন্দির, প্রতিমা ভাঙচুর করা হচ্ছে। আগে রাতের আঁধারে মন্দির ভাঙা হতো। এখন দিনে মন্দির ভাঙা হচ্ছে।

সংগঠনটি বলছে, এ ধরনের ঘটনায় কেউ ধরা পড়লে প্রশাসন তাকে ‘পাগল ও মানসিক ভারসাম্যহীন’ আখ্যা দিচ্ছে। অর্থাৎ হিন্দু নির্যাতনে জড়িতকে ‘পাগল’ বলে চালিয়ে দেয়া হচ্ছে।

কুমিল্লার ঘটনায় কক্সবাজারের সুগন্ধা পয়েন্ট থেকে বৃহস্পতিবার রাত ১০টার দিকে ইকবাল হোসেনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরিবারের দাবি, ইকবাল অপ্রকৃতিস্থ।

প্রতিবাদ কর্মসূচিতে জাতীয় হিন্দু মহাজোটের প্রধান সমন্বয়কারী শ্যামল কুমার রায়, নির্বাহী মহাসচিব ও মুখপাত্র পলাশ কান্তি দে, সহসভাপতি প্রভাস চন্দ্র মণ্ডলসহ অনেকেই উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
দায়িত্বের বাইরে পার্কে, ২ পুলিশ প্রত্যাহার
আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিটে মিলছে সুফল
‘কনস্টেবল নিয়োগে লেনদেন হলে তাৎক্ষণিক গ্রেপ্তার’
ছেলের সন্ধানে মায়ের আকুতি
পুলিশের স্ত্রী হত্যা, গ্রেপ্তার ৪

শেয়ার করুন

কারওয়ানবাজার এলাকায় ট্রেন লাইনচ্যুত

কারওয়ানবাজার এলাকায় ট্রেন লাইনচ্যুত

চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী একটি মালবাহী ট্রেন কারওয়ানবাজার এলাকায় লাইনচ্যুত হয়েছে। ছবি: সাইফুল ইসলাম

চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী একটি মালবাহী ট্রেন কারওয়ানবাজার এলাকায় লাইনচ্যুত হয়েছে। এতে কমলাপুরগামী ট্রেন চলাচল বন্ধ রয়েছে।

শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে ট্রেনটি লাইনচ্যুত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীর বরাত দিয়ে নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন রমনা ট্রাফিক বিভাগের সহকারী কমিশনার রেফাতুল ইসলাম।

প্রাথমিকভাবে তিনি বলেন, তিনটি বগি লাইনচ্যুত হয়েছে। এতে মগবাজার থেকে এফডিসি মোড় হয়ে সাত রাস্তা বা কারওয়ান বাজারের দিকে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। ট্রেন উদ্ধারে কতক্ষণ লাগবে তা নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না ঘটনাস্থলে থাকা রেলের কর্মীরা।

তবে বেলা পৌনে ১টায় ট্রেনটি সরিয়ে নেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন এসি ট্রাফিক, রমনা। ট্রেন সরানোর পর যান চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।

আরও পড়ুন:
দায়িত্বের বাইরে পার্কে, ২ পুলিশ প্রত্যাহার
আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিটে মিলছে সুফল
‘কনস্টেবল নিয়োগে লেনদেন হলে তাৎক্ষণিক গ্রেপ্তার’
ছেলের সন্ধানে মায়ের আকুতি
পুলিশের স্ত্রী হত্যা, গ্রেপ্তার ৪

শেয়ার করুন

ব্যাংকার দম্পতির বাসায় গৃহকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ

ব্যাংকার দম্পতির বাসায় গৃহকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ

রাজধানীর বনশ্রী এলাকায় ব্যাংকার দম্পতির বাসা থেকে উদ্ধার হওয়া গৃহকর্মীর মরদেহ ঢামেক হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

রামপুরা থানার ওসি রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা ৯৯৯ নম্বরে ফোন পেয়ে ব্যাংকার দম্পতির বাসা থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় ওই গৃহকর্মীর মরদেহ উদ্ধার করি।’

রাজধানীর রামপুরা থানাধীন বনশ্রী এলাকায় ব্যাংকার দম্পতির বাসা থেকে কোহিনুর আক্তার (১৬) নামের গৃহকর্মীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

জরুরি সেবার ৯৯৯ নম্বরে কল পেয়ে পুলিশ বৃহস্পতিবার বিকেলে মরদেহটি উদ্ধার করে।

পরে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ রাত ৮টার দিকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের মর্গে নেয়া হয়।

কোহিনুরের গ্রামের বাড়ি কুমিল্লা জেলার মুরাদনগর উপজেলায়। তার পরিবারের একাধিক সদস্য রাজধানীতে থাকেন।

রামপুরা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম বলেন, ‘আমরা ৯৯৯ নম্বরে ফোন পেয়ে ব্যাংকার দম্পতির বাসা থেকে ঝুলন্ত অবস্থায় ওই গৃহকর্মীর মরদেহ উদ্ধার করি।’

তিনি বলেন, ‘শরীফুল আলম ওয়ান ব্যাংকের অফিসার এবং তার স্ত্রী মাহবুবা সুলতানা উত্তরা ব্যাংকের প্রিন্সিপাল অফিসার হিসেবে কর্মরত। আমাদের কাছে জিজ্ঞাসাবাদে এই দম্পতি জানায়, তাদের বাসায় দেড় মাস আগে কাজ করতে আসে সে (কোহিনুর)।

‘এর আগেও সে এই বাসায় কাজ করেছিল। তাদের (দম্পতি) ৫ বছরের একটি সন্তানকে দেখাশোনা করার জন্য তাকে আনা হয়েছিল। তার বড় বোনও এই বাসায় আগে কাজ করত। তারা আরও জানায়, তাদের বাসায় সিসি ক্যামেরা আছে, কিন্তু সেটায় কোনো স্টোরেজ নেই।’

ওসি বলেন, ‘আমরা একটি অপমৃত্যু মামলা নিয়েছি। আমরা তদন্ত শুরু করেছি। তদন্তে আসল ঘটনা বেরিয়ে আসবে।’

পুলিশ জানায়, ওই গৃহকর্মীর মা ও বাবাকে তারা কল দিয়েছিল, কিন্তু তারা আসেনি।

ওসি রফিকুল বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি তার (গৃহকর্মী) মা হাজারীবাগ এলাকায় থাকে। তাকেও আসতে বলা হবে।

‘একটি বোন আছে উত্তরায়। আমরা তার সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করছি।’

আরও পড়ুন:
দায়িত্বের বাইরে পার্কে, ২ পুলিশ প্রত্যাহার
আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিটে মিলছে সুফল
‘কনস্টেবল নিয়োগে লেনদেন হলে তাৎক্ষণিক গ্রেপ্তার’
ছেলের সন্ধানে মায়ের আকুতি
পুলিশের স্ত্রী হত্যা, গ্রেপ্তার ৪

শেয়ার করুন

যুবলীগের চিঠি সংকলন ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ প্রকাশ

যুবলীগের চিঠি সংকলন ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ প্রকাশ

‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ বইয়ের প্রচ্ছদ।

‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ চিঠি সংকলন গ্রন্থের সম্পাদক ও প্রকাশক যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও নির্বাহী সম্পাদক যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল। গ্রন্থটির মুখবন্ধ লিখেছেন জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম ও প্রচ্ছদ করেছেন ইন্দ্রনীল চট্টোপাধ্যায়।

বঙ্গবন্ধুর উদ্দেশে লেখা প্রতীকী চিঠি নিয়ে গ্রন্থ প্রকাশ করেছে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ। যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশের সম্পাদনায় রচিত গ্রন্থটির নাম রাখা হয়েছে ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’।

১৭ অক্টোবর জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণ করে। তারই অংশ ছিল এই চিঠি লেখা কর্মসূচি। সারাদেশ থেকে আসা শতাধিক চিঠি থেকে বাছাইকৃত চিঠি নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে গ্রন্থটি।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কনিষ্ঠ পুত্র শহীদ শেখ রাসেলের ৫৮তম জন্মদিন উপলক্ষে ১৭ অক্টোবর আইইবি মিলনায়তনে যুবলীগের উদ্যোগে আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আশ্রয় কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় সংসদের মাননীয় চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী লিটন এমপি, সাবেক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর এমপি, বিশিষ্ট রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যা, তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. মুরাদ হাসান এমপি, যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত নেতারা ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন করেন।

‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’ চিঠি সংকলন গ্রন্থের সম্পাদক ও প্রকাশক যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ ও নির্বাহী সম্পাদক যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক আলহাজ্ব মো. মাইনুল হোসেন খান নিখিল। গ্রন্থটির মুখবন্ধ লিখেছেন জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম ও প্রচ্ছদ করেছেন ইন্দ্রনীল চট্টোপাধ্যায়।

সম্পাদনা সহযোগী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য মো. রফিকুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক জয়দেব নন্দী, গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক মো. জহিরুল ইসলাম মিল্টন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক বিপ্লব মোস্তাফিজ, উপ গ্রন্থনা ও প্রকাশনা সম্পাদক অ্যাডভোকেট শেখ নবীরুজ্জামান বাবু এবং উপ প্রচার সম্পাদক আদিত্য নন্দী।

গ্রন্থটির সম্পাদক শেখ ফজলে শামস পরশ বলেন, ‘জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে প্রজন্মের ভাবনা, আবেগ, ভালোবাসা প্রকাশিত হোক- এমন ইতিবাচক উদ্দেশে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ আয়োজন করে বঙ্গবন্ধুর প্রতি প্রতীকী চিঠি লেখা কর্মসূচি। সারাদেশ থেকে প্রাপ্ত বঙ্গবন্ধুকে লেখা চিঠিগুলো থেকে বাছাইকৃত চিঠি নিয়ে প্রকাশিত হলো চিঠি সংকলন গ্রন্থ ‘প্রিয় বঙ্গবন্ধু’।’

প্রিয় বঙ্গবন্ধু গ্রন্থটি বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয় ও শাহাবাগের পাঠক সমাবেশে পাওয়া যাবেও বলে জানান তিনি। এর শুভেচ্ছা মূল্য ধরা হয়েছে ৩২০ টাকা।

আরও পড়ুন:
দায়িত্বের বাইরে পার্কে, ২ পুলিশ প্রত্যাহার
আরএমপির সাইবার ক্রাইম ইউনিটে মিলছে সুফল
‘কনস্টেবল নিয়োগে লেনদেন হলে তাৎক্ষণিক গ্রেপ্তার’
ছেলের সন্ধানে মায়ের আকুতি
পুলিশের স্ত্রী হত্যা, গ্রেপ্তার ৪

শেয়ার করুন