এত অনলাইনের প্রয়োজন নেই: তথ্যমন্ত্রী

এত অনলাইনের প্রয়োজন নেই: তথ্যমন্ত্রী

সচিবালয়ে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। ছবি: নিউজবাংলা

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘দেশে এত বেশি অনলাইনের প্রয়োজন নেই। থাকা সমীচীনও নয়। অনলাইন বন্ধ করে দেয়ার বিষয়ে আদালত যে নির্দেশ দিয়েছে সেটি আমরা গণমাধ্যমে শুনেছি। এখনও নোটিশ পাইনি। আদালতের নির্দেশ পেলে নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে আমরা কিছু অনলাইন বন্ধ করে দেব।’

অনিবন্ধিত সব নিউজ পোর্টাল বন্ধে হাইকোর্টের নির্দেশের পরের দিন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদও একই সুরে কথা বলেছেন। দেশে এত বেশি অনলাইন থাকার যৌক্তিকতা নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তিনি।

সচিবালয়ে বুধবার সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘দেশে এত বেশি অনলাইনের প্রয়োজনও নেই। থাকা সমীচীনও নয়।’

এ বিষয়ে হাইকোর্টের আদেশের বিষয়টি সামনে এনে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আদালতের আদেশটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। যেসব অনলাইন সত্যিকার অর্থে গণমাধ্যম হিসেবে কাজ করে না বরং নিজস্ব বিশেষ উদ্দেশ্যে কাজ করে এবং ব্যাংকের ছাতার মতো এত অনলাইন আসলে দেশে প্রয়োজনও নাই।

‘যার যেমন ইচ্ছা একটি অনলাইন খুলে বসবে এবং যেমন ইচ্ছা তেমন সংবাদ পরিবেশন করবে, মিথ্যা সংবাদ পরিবেশন করবে, গুজব রটানোর কাজে ব্যবহার করবে, অন্যের চরিত্রহনন করবে, ব্যবসায়িক উদ্দেশ্যে পরিচালিত হবে বা স্বার্থ সংরক্ষণে লেখালেখি হবে এটি কখনও সমীচীন নয়। সেক্ষেত্রে এ আদেশ একটি সহায়ক আদেশ।’

আদালতের নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কিছু অনলাইন বন্ধ করা হবে বলেও জানান তথ্যমন্ত্রী। বলেন, ‘আমরা আদালতের লিখিত আদেশ পাওয়ার পর আদালত যে সময় সীমা নির্ধারণ করেছে আমরা অবশ্যই কিছু অনলাইন বন্ধ করব। তবে ভবিষ্যতেও অনলাইন রেজিস্ট্রেশন দিতে হবে। এটি আমরা একটি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে করছি। আমরা আদালতের কাছে বিষয়টি উপস্থাপন করব।

‘কিছু অনলাইন বন্ধও করব, পাশাপাশি আদালতের নজরে এটিও আনব যে রেজিস্ট্রেশন একটি চলমান প্রক্রিয়া। যাচাই বাছাই ছাড়া সবগুলোকে একসঙ্গে বন্ধ করে দেয়া কতটুকু সমীচীন এটিও ভাবার বিষয়। এটি আমরা আদালতে বলব।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আদালতের এ আদেশ আমরা শুনেছি, গণমাধ্যমের মাধ্যমে জেনেছি। এর অফিসিয়াল কপি এখনও আমরা পাইনি। অনলাইন রেজিস্ট্রেশন একটি চলমান প্রক্রিয়া আর এটি ভবিষ্যতেও হবে। ছয় মাস পরে হবে, এক বছর পরে হবে আবার পাঁচ বছর পরেও হবে।

‘কারণ এখন যেগুলো রেজিস্ট্রেশন প্রাপ্ত সেগুলো ছাড়া ভবিষ্যতে আর কোনো অনলাইন রেজিস্ট্রেশন পাবে না বিষয়টি তেমন নয়। তেমন কোনো নিয়ম নেই। কিংবা আজ যে পত্রপত্রিকাগুলো রয়েছে ভবিষ্যতে এগুলো ছাড়া আর কোনোটা বের হবে না তেমন নিয়ম কোথাও নেই। এটি একটি চলমান প্রক্রিয়া।’

একইভাবে অনৈতিক কাজে জড়িত আইপি টিভির বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানান মন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘অনলাইন যেভাবে আমরা রেজিস্ট্রেশন দিচ্ছি একইভাবে ইউটিউব চ্যানেল বা আইপি টিভিকেও রেজিস্ট্রেশন দেয়ার প্রক্রিয়া শুরু করেছি। এখনও এটা শুরু হয়নি, তবে খুব শিগগিরই শুরু হবে। আমরা আশা করেছিলাম গতমাসেই পারব, কিন্তু তদন্ত রিপোর্ট এখনও পাইনি।

‘এই যে ব্যাঙের ছাতার মতো আইপি টিভি করার যে একটি হুজুক তৈরি হয়েছে এটি কোনোভাবেই সমীচীন নয়। এখানেও যেগুলো বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়ে পরিচালিত হচ্ছে, নিজেদের রেগুলার টেলিভিশন চ্যানেলের মতো জাহির করছে এগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এক্ষেত্রেও আদালতের একটি অবজর্ভেশন রয়েছে।’

এক রিটের শুনানি নিয়ে মঙ্গলবার বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মো. কামরুল হোসেন মোল্লার বেঞ্চ দেশের সব অনিবন্ধিত নিউজ পোর্টাল বন্ধের আদেশ দেয়।

এর আগে গত ১৬ আগস্ট অনলাইন পত্রিকার সাংবাদিকদের জন্য ‘নৈতিক নীতিমালা’ প্রণয়নে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছিল আদালত।

সেই সঙ্গে ‘ন্যাশনাল অনলাইন মাস মিডিয়া পলিসি ২০১৭’ অনুযায়ী দেশে অননুমোদিত এবং অনিবন্ধিত অনলাইন পত্রিকাগুলোকে কেন বন্ধের নির্দেশ দেয়া হবে না জানতে চাওয়া হয়।

পাশাপাশি অপেক্ষমাণ থাকা অনিবন্ধিত পত্রিকাগুলোকে নিবন্ধনের আওতায় আনতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না তাও জানতে চাওয়া হয় রুলে।

আরও পড়ুন:
চালু থাকবে যেসব অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনিবন্ধিত সব নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ

শেয়ার করুন

মন্তব্য

প্রত্যাবাসনে রোহিঙ্গা সংকটের সমাধান দেখছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রত্যাবাসনে রোহিঙ্গা সংকটের সমাধান দেখছেন প্রধানমন্ত্রী

২০১৭ সালে মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর নির্যাতনের শিকার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেন লাখ লাখ রোহিঙ্গা। ফাইল ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আগেও বলেছি, আবারও বলছি- রোহিঙ্গা সংকটের সৃষ্টি মিয়ানমারে, সমাধানও রয়েছে মিয়ানমারে। রাখাইন রাজ্যে তাদের মাতৃভূমিতে নিরাপদ, টেকসই ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবর্তনের মাধ্যমেই কেবল এ সংকটের স্থায়ী সমাধান হতে পারে। এ জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অবশ্যই গঠনমূলক উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।’

মিয়ানমারে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের শিকার হয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের নিরাপদ ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবাসনের মধ্য দিয়েই এ সংকটের স্থায়ী সমাধান হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অবশ্যই গঠনমূলক উদ্যোগ গ্রহণের আহ্বান জানালেন তিনি।

শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ৭৬তম অধিবেশনে নিজের ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আগেও বলেছি, আবারও বলছি- রোহিঙ্গা সংকটের সৃষ্টি মিয়ানমারে, সমাধানও রয়েছে মিয়ানমারে। রাখাইন রাজ্যে তাদের মাতৃভূমিতে নিরাপদ, টেকসই ও মর্যাদাপূর্ণ প্রত্যাবর্তনের মাধ্যমেই কেবল এ সংকটের স্থায়ী সমাধান হতে পারে। এ জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে অবশ্যই গঠনমূলক উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।’

রোহিঙ্গা সংকট পঞ্চম বছরে পড়লেও কোনো অগ্রগতি নেই জানিয়ে এই বিশ্বসভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কিন্তু এখন পর্যন্ত বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের একজনকেও মিয়ানমারে ফেরত পাঠানো সম্ভব হয়নি। মিয়ানমারে সাম্প্রতিক রাজনৈতিক পট পরিবর্তনে অনিশ্চয়তা তৈরি হলেও এ সমস্যার একটি স্থায়ী সমাধান খুঁজে বের করতে আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের জোরালো ভূমিকা ও অব্যাহত সহযোগিতা আশা করি।’

প্রত্যাবাসনে রোহিঙ্গা সংকটের সমাধান দেখছেন প্রধানমন্ত্রী
জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ৭৬তম অধিবেশনে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: নিউজবাংলা

মিয়ানমারকে অবশ্যই তার নাগরিকদের প্রত্যাবর্তনের অনুকূল পরিবেশ তৈরি করতে হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সহযোগিতা করতে সদা প্রস্তুত।’

রোহিঙ্গা ইস্যুতে নেয়া পদক্ষেপ আসিয়ানের নেতারা আরও গতিশীল করবেন বলে আশা প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, ‘আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য দায়ীদের জবাদদিহিতা নিশ্চিতকরণে গৃহীত সকল কর্মকাণ্ডে সহযোগিতা করতে হবে।’

বাংলাদেশে রোহিঙ্গাদের ‘সাময়িক অবস্থানকে’ নিরাপদ ও সুরক্ষিত রাখতে সরকারের নেয়া পদক্ষেপও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘মিয়ানমার নাগরিককে আমরা ভাসানচরে স্থানান্তর করেছি। আশ্রয় শিবিরে কোভিড-১৯ মহামারির বিস্তাররোধে টিকালাভের যোগ্য সকলকে জাতীয় টিকাদান কর্মসূচিতে অন্তর্ভূক্ত করা হয়েছে।’

আরও পড়ুন:
চালু থাকবে যেসব অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনিবন্ধিত সব নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ

শেয়ার করুন

‘আফগানের উন্নয়নে কাজ করতে প্রস্তুত বাংলাদেশ’

‘আফগানের উন্নয়নে কাজ করতে প্রস্তুত বাংলাদেশ’

১৫ আগস্ট কাবুলে প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ দখল করে আফগানিস্তানের নিয়ন্ত্রণ নেয় তালেবান গোষ্ঠী। ফাইল ছবি

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, আফগানিস্তানের বিনির্মাণ এবং ভবিষ্যতের গতিপথ নির্ধারণ আফগানিস্তানের জনগণের ওপরই নির্ভর করে।’

আফগানিস্তানের উন্নয়নে দেশটির জনগণ এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে বাংলাদেশ কাজ করতে প্রস্তুত বলে জাতিসংঘকে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদরদপ্তরে শুক্রবার ৭৬তম সাধারণ অধিবেশনে নিজের ভাষণে এ কথা জানান প্রধানমন্ত্রী।

এ বছরের এপ্রিলে আফগানিস্তানে দুই দশকের যুদ্ধের ইতি টেনে সেপ্টেম্বরের মধ্যে সব সেনা ফেরত নেয়ার ঘোষণা দেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। সেই ঘোষণার পর থেকে উজ্জীবিত তালেবানরা। একের পর এক দখলে নিতে শুরু করে আফগানিস্তানের বিভিন্ন প্রদেশ।

সবশেষ গত ১৫ আগস্ট রাজধানী কাবুল ও প্রেসিডেন্ট প্রাসাদ দখলে নিয়ে নিজেদের নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করে কট্টর ইসলামপন্থি দলটি। তবে সরকার গঠনে সময় নিচ্ছিল তালেবান। সেই অপেক্ষার অবসান হয় ৭ সেপ্টেম্বর।

অন্তর্ভুক্তিমূলক সরকার গঠনের কথা জানিয়ে নারীসহ সবার অংশগ্রহণ নিশ্চিত করা হবে বলে জানায় তালেবান। কিন্তু পাল্টে যায় সুর। জানায়, এককভাবেই সরকার গঠন করবে তারা। রাখা হবে না কোনো নারী নেতৃত্বও। অন্তবর্তী সরকারেও তাই দেখা গেল।

দীর্ঘ যুদ্ধে দেশের ভগ্নদশা অর্থনীতিকে চাঙ্গা করা, দেশে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনা এবং আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সম্পর্ক স্থাপন করাকে তালেবান সরকারের প্রধান চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখা হচ্ছে।

সরকার গঠনের পরদিন বাংলাদেশের পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানান, জাতিসংঘ ও পশ্চিমা দেশগুলো অনুমোদন না দিলে আফগানিস্তানে তালেবানের অন্তর্বর্তী সরকারকে বাংলাদেশও স্বীকৃতি দেবে না।

পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী সেদিন বলেছিলেন, ‘আফগানিস্তানের উন্নয়নে জাতিসংঘ ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন (ইইউ) উদ্যোগ নিলে সে বিষয়ে সমর্থন দেবে বাংলাদেশ।’

তার ঠিক এক দিন পর ৯ সেপ্টেম্বর তালেবানের অন্তর্বর্তীকালীন সরকারকে স্বীকৃতি দেয়ার বিষয়ে ভারত কিংবা পাকিস্তানের সিদ্ধান্তের ওপর ভিত্তি করে বাংলাদেশ কোনো সিদ্ধান্ত নেবে না বলে জানান পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘আফগানিস্তান আমাদের সার্কের সদস্য। তাদের সঙ্গে আমাদের কিছু ঐতিহাসিক সম্পর্ক আছে, কিন্তু গত টার্মে আমরা দেখেছি আমাদের দেশের অনেক মানুষ সেখানে গিয়ে সন্ত্রাসে অংশ নিয়েছে। আমরা এই বিষয়ে জিরো টলারেন্স। কোনোভাবেই সন্ত্রাসকে প্রশ্রয় দেব না।’

মোমেন জানান, আফগানিস্তান ইস্যুতে বাংলাদেশ এখন পর্যবেক্ষণে আছে। সে দেশের জনগণ যে সরকার গঠন করবে, ঢাকাও সেই সরকারকে স্বীকৃতি দেবে।

তার দুই সপ্তাহ পর জাতিসংঘে প্রধানমন্ত্রী বললেন, ‘আফগানিস্তানের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের জন্য দেশটির জনগণ এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে কাজ করে যেতে বাংলাদেশ সদা প্রস্তুত।’

তবে শান্তিপূর্ণ, স্থিতিশীল এবং সমৃদ্ধ দক্ষিণ এশিয়ার স্বপ্নের কথা জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আফগানিস্তানের ভাগ্যও দেশটির জনগণের হাতে বলেও নিজের মত তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, আফগানিস্তানের বিনির্মাণ এবং ভবিষ্যতের গতিপথ নির্ধারণ আফগানিস্তানের জনগণের ওপরই নির্ভর করে।’

আরও পড়ুন:
চালু থাকবে যেসব অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনিবন্ধিত সব নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ

শেয়ার করুন

জলবায়ু পরিবর্তন: ক্ষতিপূরণ ও অভিযোজনে প্রযুক্তি চান প্রধানমন্ত্রী

জলবায়ু পরিবর্তন: ক্ষতিপূরণ ও অভিযোজনে প্রযুক্তি চান প্রধানমন্ত্রী

জাতিসংঘের ৭৬তম অধিবেশনে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, ‘ধনী অথবা দরিদ্র-কোনো দেশই এর বিরূপ প্রতিক্রিয়া থেকে নিরাপদ নয়। তাই আমি ধনী ও শিল্পোন্নত দেশগুলোকে কার্বন নিঃসরণ হ্রাস, নিঃসরণের জন্য ক্ষতিপূরণ প্রদান এবং টেকসই অভিযোজনের জন্য অর্থায়ন ও প্রযুক্তির অবাধ হস্তান্তরের আহ্বান জানাচ্ছি।’

করোনাভাইরাস মহামারি জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোকে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির মুখে ঠেলে দিচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে জলবায়ু পরিবর্তনের ধ্বংসাত্মক প্রভাব কাটিয়ে ওঠা কঠিন হবে।

এ জন্য ধনী ও শিল্পোন্নত দেশগুলোকে কার্বন নিঃসরণ কমানো ও ক্ষতিপূরণ দেয়া এবং টেকসই অভিযোজনের জন্য অর্থায়ন ও প্রযুক্তির হস্তান্তরের দাবি জানিয়েছেন তিনি।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদরদপ্তরে ৭৬তম অধিবেশনে শুক্রবার দেয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী এ দাবি জানান।

তিনি বলেন, ‘এ (করোনা) মহামারি জলবায়ু পরিবর্তনের ঝুঁকিতে থাকা দেশগুলোকে অধিকমাত্রায় ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক ইন্টারগভর্মেন্টাল প্যানেল অন ক্লাইমেট চেঞ্জের ওয়ার্কিং গ্রুপ-১-এর প্রতিবেদনে আমাদের এ গ্রহের ভবিষ্যতের এক ভয়াল চিত্র ফুটে উঠেছে।’

দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে জলবায়ু পরিবর্তনের ধ্বংসাত্মক প্রভাব কাটিয়ে ওঠা কঠিন হবে বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘ধনী অথবা দরিদ্র-কোনো দেশই এর বিরূপ প্রতিক্রিয়া থেকে নিরাপদ নয়। তাই আমি ধনী ও শিল্পোন্নত দেশগুলোকে কার্বন নিঃসরণ হ্রাস, নিঃসরণের জন্য ক্ষতিপূরণ প্রদান এবং টেকসই অভিযোজনের জন্য অর্থায়ন ও প্রযুক্তির অবাধ হস্তান্তরের আহ্বান জানাচ্ছি।’

ক্লাইমেট ভালনারেবল ফোরাম এবং ভালনারেবল-২০ গ্রুপ অব মিনিস্টার্স অফ ফাইন্যান্স-এর সভাপতি হিসেবে জলবায়ু পরিবর্তনের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় নিজ দেশে নেয়া পদক্ষেপগুলো বিশ্ব সভায় তুলে ধরেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা মুজিব জলবায়ু সমৃদ্ধি পরিকল্পনা- দশক ২০৩০-এর কার্যক্রম শুরু করেছি। এ পরিকল্পনায় বাংলাদেশের জন্য জলবায়ুকে ঝুঁকির কারণ নয়, বরং সমৃদ্ধির নিয়ামক হিসেবে পরিণত করার কর্মসূচি গৃহীত হয়েছে।’

গ্লাসগোতে অনুষ্ঠেয় ‘কনফারেন্স অব পার্টিজ’-এর ২৬তম শীর্ষ সম্মেলন অন্তর্ভুক্তিমূলক পরিকল্পনার পক্ষে সমর্থন আদায়ের অপার সুযোগ করে দিতে পারে বলে মনে করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘এ সুযোগ কাজে লাগানোর জন্য সবাইকে আহ্বান জানাই।’

বিপর্যস্ত শিক্ষা

করোনা মহামারির কারণে শিক্ষাব্যবস্থায় নেমে আসা বিপর্যয় নিয়েও কথা বলেছেন শেখ হাসিনা। আর তাই শিক্ষা সরঞ্জাম ও ইন্টারনেটের সহজলভ্যতা নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় বিনিয়োগে জাতিসংঘকে পাশে চান তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ডিজিটাল সরঞ্জামাদি ও সেবা, ইন্টারনেটের সুযোগ-সুবিধার সহজলভ্যতা ও শিক্ষকদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে বিনিয়োগ করতে হবে। এ জন্য আমরা জাতিসংঘকে অংশীদারিত্ব ও প্রয়োজনীয় সম্পদ নিশ্চিত করার জন্য আহ্বান জানাই।’

জাতিসংঘ শিশু তহবিলের তথ্য অনুযায়ী, করোনাকালে আংশিক বা পুরোপুরি বিদ্যালয় বন্ধের কারণে বিশ্বের প্রায় অর্ধেক শিক্ষার্থী ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘নিম্ন আয়ের দেশগুলোর লাখ লাখ ছাত্রছাত্রীর দূরশিক্ষণে অংশগ্রহণের সক্ষমতা ও প্রযুক্তি না থাকায় ভর্তি, স্বাক্ষরতার হার ইত্যাদি অর্জনগুলো হুমকির মুখে পড়েছে।’

উন্নয়নশীল দেশে ‍উত্তরণে বাধা মহামারি

স্বল্পোন্নত দেশের গণ্ডি পেরিয়ে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উন্নীত হওয়ার আকাঙ্ক্ষা করোনা মহামারির কারণে বিপন্ন হচ্ছে বলে অভিমত প্রধানমন্ত্রীর। তাই টেকসই উন্নয়নে উন্নয়ন সহযোগীদের কাছে প্রণোদনার দাবি রাখেন তিনি।

শেখ হাসিনা বলেন, ‘কোভিড-১৯ অতিমারির নজিরবিহীন প্রতিকূল পরিস্থিতির মধ্যে আমরা স্বল্পোন্নত দেশের তালিকা থেকে উত্তরণের পথে রয়েছি। তবে, এ মহামারি অনেক দেশের উত্তরণের আকাঙ্ক্ষাকে বিপন্ন করেছে।

‘স্বল্পোন্নত দেশের টেকসই উত্তরণ ত্বরান্বিত করার জন্য উন্নয়ন সহযোগীদের কাছ থেকে আমরা প্রণোদনাভিত্তিক উত্তরণ কাঠামো প্রণয়নে আরও সহায়তা আশা করি।’

এলডিসি-৫ সম্মেলনের প্রস্তুতিমূলক কমিটির সভাপতি হিসেবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আশা করি যে, দোহা সম্মেলনের সুনির্দিষ্ট ফলাফল আরও বেশি সংখ্যক দেশকে সক্ষমতা দান করবে, যেন তারা স্বল্পোন্নত দেশের কাতার থেকে টেকসইভাবে উত্তরণ করতে পারে।’

প্রবাসীদের চাকরিচ্যুত না করার আহ্বান

করোনা মহামারিকালে প্রবাসী কর্মীদের চাকরিচ্যুতি, বেতন কাটা, বাধ্যতামূলক প্রত্যাবর্তনে উদ্বেগ জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সংকটকালে তাদের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করতে অভিবাসনগ্রহণকারী দেশগুলোর প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

মহামারিকালে প্রবাসীরা অপরিহার্য কর্মী হিসেবে স্বাস্থ্য ও অন্যান্য জরুরি সেবাখাতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছেন বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘তাদের অনেকে চাকুরিচ্যুতি, বেতন কাটা, স্বাস্থ্য ও অন্যান্য সামাজিক সেবার সহজলভ্যতার অভাব ও বাধ্যতামূলক প্রত্যাবর্তনের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘এই সংকটকালে অভিবাসীগ্রহণকারী দেশগুলোকে অভিবাসীদের সঙ্গে ন্যায়সঙ্গত আচরণ করার এবং তাদের কর্মসংস্থান, স্বাস্থ্য এবং কল্যাণকে নিশ্চিত করার জন্য আহ্বান জানাচ্ছি।’

শান্তির সপক্ষে বাংলাদেশ

সন্ত্রাসবাদ ও সহিংস উগ্রবাদের কারণে বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে শান্তি ও নিরাপত্তা বিঘ্নিত হচ্ছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা সন্ত্রাসবাদ ও সহিংসতার বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি বজায় রেখেছি।’

বিশ্ব শান্তি রক্ষায় বাংলাদেশের শান্তিরক্ষীদের অবদানের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মহমারির নজিরবিহীন প্রতিকূলতা সত্ত্বেও আমাদের শান্তিরক্ষীরা বিশ্বজুড়ে কঠিনতম পরিবেশে নিষ্ঠা ও পেশাদারিত্বের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করছেন। তাদের নিরাপত্তা ও সুরক্ষা বজায় রাখতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সম্ভাব্য সকল পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে।’

সংবিধানের আলোকে বাংলাদেশকে ‘নিরস্ত্রীকরণের অবিচল সমর্থক’ হিসেবে বিশ্বসভায় তুলে ধরেছেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘আমরা দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, পারমাণবিক ও অন্যান্য গণবিধ্বংসী অস্ত্রের সম্পূর্ণ নির্মূলের মাধ্যমে আন্তর্জাতিক শান্তি ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা সম্ভব।’

আর তাই বাংলাদেশ ‘পারমাণবিক অস্ত্র নিষিদ্ধকরণ চুক্তি’ অনুস্বাক্ষর করেছে বলে জানান তিনি।

চলতি বছরের শুরুতে চুক্তিটি কার্যকর হয়েছে।

জাতিসংঘ হোক ‘ভরসার সর্বোত্তম কেন্দ্রস্থল’

সার্বজনীন বিষয়গুলোতে বিশ্বের সবাইকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে এবং নতুন নতুন অংশীদারত্ব ও সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্র প্রস্তুত করতে হবে বলেও মনে করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘সংকীর্ণ রাজনৈতিক স্বার্থের উর্ধ্বে উঠে বিভিন্ন অঞ্চলের সদস্য দেশগুলো এই জাতিসংঘের মঞ্চ থেকেই তা শুরু করতে পারে। তবেই আমরা সহনশীল ও অন্তর্ভূক্তিমূলক উত্তরণের লক্ষ্যে একটি অর্থবহ সহযোগিতা অর্জন করতে পারব।’

ক্রান্তিকালে জাতিসংঘকে ‘ভরসার সর্বোত্তম কেন্দ্রস্থল’ হিসেবে দেখতে চান প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘সেই ভরসাকে বাঁচিয়ে রাখার প্রত্যয়ে আমরা সবাই হাতে হাত মিলিয়ে একযোগে কাজ করি।’

বঙ্গবন্ধু হত্যার ন্যায়বিচারের প্রত্যাশা

প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্যে ওঠে আসে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের সেই কালরাতের কথা। জাতিসংঘে দাঁড়িয়ে পিতা হত্যার ন্যায় বিচার পাওয়ার প্রত্যাশার কথা জানান বঙ্গবন্ধু কন্যা।

তিনি বলেন, ‘সারা বিশ্বে শান্তি ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠার এই মহান সংস্থার সামনে বিগত প্রায় ৪৬ বছর আগে আমার পরিবারের সদস্যদের নির্মমভাবে হত্যার ন্যায়বিচার পাওয়ার প্রত্যাশার কথা তুলে ধরতে চাই।’

প্রধানমন্ত্রীর বর্ণনায় উঠে আসে সেই কাল রাতের কথা। তিনি বলেন, ‘১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট ভোরে একদল বিপথগামী ঘাতক আমার পিতা, বাংলাদেশের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, আমার স্নেহময়ী মা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, তিন ভাই মুক্তিযোদ্ধা ক্যাপ্টেন শেখ কামাল, মুক্তিযোদ্ধা লে. শেখ জামাল, ১০-বছরের শেখ রাসেল, চাচা মুক্তিযোদ্ধা শেখ আবু নাসেরসহ পরিবারের ১৮ জন সদস্য ও নিকটাত্মীয়কে নির্মমভাবে হত্যা করে।

ছোটবোন শেখ রেহানাসহ তিনি ওই সময় বিদেশে থাকায় প্রাণে বেঁচে যান বলে জানান। তিনি বলেন, ‘আমাদের ৬ বছর দেশে ফিরতে দেওয়া হয়নি। স্বজন হারানোর বেদনা বুকে নিয়ে বিদেশের মাটিতে নির্বাসিত জীবন কাটিয়েছি।’

দেশে ফিরে মানুষের ভোট ও ভাতের অধিকার আদায়ের সংগ্রাম শুরুর করেছেন জানিয়ে তিনি বলেন, ‘জাতির পিতার স্বপ্ন সুখী-সমৃদ্ধ সোনার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার জন্যে আজও আমি কাজ করে যাচ্ছি।’

যতদিন বেঁচে থাকবেন মানুষের কল্যাণের জন্য কাজ করে যাবেন বলে নিজের প্রত্যয় জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আরও পড়ুন:
চালু থাকবে যেসব অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনিবন্ধিত সব নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ

শেয়ার করুন

জাতিসংঘে টিকা প্রযুক্তি চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

জাতিসংঘে টিকা প্রযুক্তি চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ৭৬তম অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভাষণ । ছবি: নিউজবাংলা

করোনাভাইরাসকে বিশ্বের ‘অভিন্ন শত্রু’ হিসেবে চিহ্নিত করে এই অণুজীব মোকাবিলায় অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে এখন অনেক বেশি নতুন, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও বৈশ্বিক পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

টিকা বৈষম্য রেখে টেকসই পুনরুদ্ধার সম্ভব নয় বলে মনে করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। আমদানি করে টিকা নিশ্চিত করা সব দেশের পক্ষে সম্ভব নয়- এমন ধারণা থেকে কোভিডমুক্ত বিশ্ব গড়তে টিকা প্রযুক্তি উন্মুক্ত করে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

করোনাভাইরাসকে বিশ্বের ‘অভিন্ন শত্রু’ হিসেবে চিহ্নিত করে এই অণুজীব মোকাবিলায় অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে এখন অনেক বেশি নতুন, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও বৈশ্বিক পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শুক্রবার যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ৭৬তম অধিবেশনে নিজের ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘দুঃখজনক হলেও এই মহামারি আরও বেশ কিছুদিন স্থায়ী হবে বলে মনে হচ্ছে। সেজন্য এ অভিন্ন শত্রুকে মোকাবিলা করার জন্য অতীতের যেকোনো সময়ের চেয়ে এখন আমাদের অনেক বেশি নতুন, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও বৈশ্বিক পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে।’

কোভিডমুক্ত একটি বিশ্ব গড়ে তোলার লক্ষ্যে টিকার সর্বজনীন ও সাশ্রয়ী মূল্যে প্রাপ্যতা নিশ্চিত করতে হবে বলেও জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

জাতিসংঘে টিকা প্রযুক্তি চাইলেন প্রধানমন্ত্রী
জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ৭৬তম অধিবেশনে ভাষণ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ছবি: নিউজবাংলা

তিনি বলেন, “গত বছর এ অধিবেশনে আমি কোভিড-১৯ টিকাকে ‘বৈশ্বিক সম্পদ’ হিসেবে বিবেচনা করার আহ্বান জানিয়েছিলাম। বিশ্বনেতাদের অনেকে তখন এ বিষয়ে সহমত পোষণ করেছিলেন। সে আবেদনে তেমন সাড়া পাওয়া যায়নি। বরং আমরা ধনী ও দরিদ্র দেশগুলোর মধ্যে টিকা বৈষম্য বাড়তে দেখেছি।”

উৎপাদিত টিকার ৮৪ শতাংশ উচ্চ ও উচ্চ-মধ্যম আয়ের দেশগুলোর মানুষের কাছে পৌঁছেছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নিম্ন আয়ের দেশগুলো এক শতাংশেরও কম টিকা পেয়েছে।

তিনি বলেন, ‘জরুরিভিত্তিতে এ টিকা বৈষম্য দূর করতে হবে। লাখ লাখ মানুষকে টিকা থেকে দূরে রেখে কখনই টেকসই পুনরুদ্ধার সম্ভব নয়। আমরা পুরোপুরি নিরাপদও থাকতে পারবো না।’

সবার জন্য ন্যায়সঙ্গত ও সাশ্রয়ী মূল্যে টিকার প্রাপ্যতা নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘অবিলম্বে টিকা প্রযুক্তি হস্তান্তর টিকার সমতা নিশ্চিত করার একটি উপায় হতে পারে। প্রযুক্তি সহায়তা ও মেধাস্বত্ত্বে ছাড় পেলে বাংলাদেশও ব্যাপক পরিমাণে টিকা তৈরি করতে সক্ষম।’

কোভিড-১৯ মহামারির প্রকোপ আশঙ্কার চেয়ে বাংলাদেশে অনেক কম হয়েছে। এমনটি জাতিসংঘকে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘তৃণমূল পর্যায় থেকে আমাদের শক্তিশালী স্বাস্থ্য ব্যবস্থার কারণে এটা সম্ভব হয়েছে। এ ছাড়া, এ মহামারি মোকাবিলায় আমাদের সময়োচিত, সমন্বিত ও বহুমুখী উদ্যোগ কার্যকর ভূমিকা রেখেছে। জীবন ও জীবিকার ভারসাম্য রক্ষা করতে শুরুতে আমাদের বেশ কিছু কঠোর সিদ্ধান্ত নিতে হয়েছিল।’

অর্থনীতিকে সচল রাখতে দেয়া ২৮টি প্রণোদনা প্যাকেজের কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, ‘প্রায় ১ হাজার ৪৬০ কোটি মার্কিন ডলার বরাদ্দ দিয়েছি, যা মোট দেশজ উৎপাদনের ৪ দশমিক ৪৪ শতাংশ। করোনাভাইরাসের টিকা সংগ্রহের জন্য চলতি অর্থবছরে বাজেটে ১৬১ কোটি মার্কিন ডলারের সংস্থান রাখা হয়েছে।’

অতি দরিদ্র, বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন, বিদেশ-ফেরত প্রবাসী ও অসহায় নারীদের মতো সমাজের দুর্বলতর জনগোষ্ঠীর জন্যে তার সরকার পর্যাপ্ত উদ্যোগ নিয়েছে বলেও জানান শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘গত বছর মহামারির প্রাদুর্ভাবের শুরু থেকে আমরা প্রায় ৪ কোটি মানুষকে নগদ অর্থসহ অন্যান্য সহায়তা দিয়েছি।’

আরও পড়ুন:
চালু থাকবে যেসব অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনিবন্ধিত সব নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ

শেয়ার করুন

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় খোলার অনুমতি

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় খোলার অনুমতি

রাজধানীর বাড্ডায় বেসরকারি কানাডিয়ান বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস। ছবি: নিউজবাংলা

অফিস আদেশে বলা হয়, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো একাডেমিক কাউন্সিল ও সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্তক্রমে নিজ ব্যবস্থাপনায় যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে সশরীরে ক্লাস, পরীক্ষাসহ শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখতে পারবে।

করোনায় ১৭ মাস বন্ধ থাকার পর শর্তসাপেক্ষে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে সশরীরে ক্লাস, পরীক্ষা নেয়ার অনুমতি দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। তবে এর জন্য স্ব স্ব বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিল ও সিন্ডিকেটের অনুমতি লাগবে এবং যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মানতে হবে।

বৃহস্পতিবার রাতে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের পরিচালক (বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বিভাগ) মো. ওমর ফারুখের সই করা অফিস আদেশ থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

এ বিষয়ে ইউজিসি চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ বলেন, ‘সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকেও করোনার এক ডোজ টিকা অথবা টিকার জন্য রেজিস্ট্রেশন করা হয়েছে এই শর্তে সশরীরে ক্লাস ও পরীক্ষা নেয়ার অনুমতি দেয়া হয়েছে।’

অফিস আদেশে বলা হয়, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়গুলো একাডেমিক কাউন্সিল ও সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্তক্রমে নিজ ব্যবস্থাপনায় যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মেনে সশরীরে ক্লাস, পরীক্ষাসহ শিক্ষা কার্যক্রম চালু রাখতে পারবে।

শর্ত সমূহ:

১. শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষার্থীগণ ইতোমধ্যে কমপক্ষে এক ডোজ ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছে অথবা ভ্যাকসিন গ্রহণের জন্য জাতীয় পরিচয় (NID) সহযোগে জাতীয় সুরক্ষা সেবা ওয়েব (https://surokkha.gov.bd/) অথবা surokkha app-এর মাধ্যমে নিবন্ধন করে থাকলে।

২. ১৮ বছর বা তদূর্ধ্ব শিক্ষার্থী, যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র নেই, তারা জন্ম নিবন্ধন সনদের তথ্য ব্যবহার করে কমিশনের ওয়েবলিংক (https://univac.ugc.gov.bd)-এ ভ্যাকসিন গ্রহণের জন্য প্রাথমিক নিবন্ধন করে থাকলে এবং পরবর্তীতে জাতীয় সুরক্ষা সেবা ওয়েব পোর্টালের মাধ্যমে টিকা গ্রহণের জন্য নিবন্ধন করে থাকলে।

এর আগে গত ১৪ সেপ্টেম্বর বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) ও উপাচার্যদের বৈঠকে ২৭ সেপ্টেম্বরের মধ্যে শিক্ষার্থীদের টিকা নিবন্ধন শেষে কিছু ব্যবস্থা নেয়া সাপেক্ষে যেকোনো দিন সরকারি বিশ্ববিদ্যালয় খোলার সিদ্ধান্ত হয়।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হলে গত বছরের ১৭ মার্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেয়া হয়। দেড় বছর পর ১২ সেপ্টেম্বর খুলে দেয়া হয়েছে প্রাথমিক, মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো।

আরও পড়ুন:
চালু থাকবে যেসব অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনিবন্ধিত সব নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ

শেয়ার করুন

আরও ৬ বিভাগে বিটিভির পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্র

আরও ৬ বিভাগে বিটিভির পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্র

বাংলাদেশ টেলিভিশন ভবন ঢাকা। ছবি: সংগৃহীত

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘শিগগির খুলনাসহ আরও ৬ বিভাগীয় শহরে বাংলাদেশ টেলিভিশনের পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্র স্থাপিত হবে। অন্যান্য জেলা এবং খুলনাতেও সিনেপ্লেক্সসহ তথ্য কমপ্লেক্স হবে।’

দেশের আরও ছয় বিভাগীয় শহরে বাংলাদেশ টেলিভিশনের পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্র স্থাপনের কথা জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহ্‌মুদ।

খুলনায় শুক্রবার সকালে বাংলাদেশ বেতার কেন্দ্র পরিদর্শনের সময় তিনি এ কথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘শিগগির খুলনাসহ আরও ৬ বিভাগীয় শহরে বাংলাদেশ টেলিভিশনের পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্র স্থাপিত হবে। অন্যান্য জেলা এবং খুলনাতেও সিনেপ্লেক্সসহ তথ্য কমপ্লেক্স হবে।

‘বঙ্গবন্ধুর হাত ধরে দেশে যে চলচ্চিত্রশিল্পের যাত্রা, তাকে নতুন জীবন দিতে সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করছে। বন্ধ হয়ে যাওয়া খুলনা নিউজপ্রিন্ট কারখানাটি এ অঞ্চলের পত্রিকাগুলোর স্বার্থে আবার চালুর জন্য আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত আছে।’

বাংলাদেশ টেলিভিশনের বর্তমানে ঢাকা ও চট্টগ্রামে দুটি পূর্ণাঙ্গ সম্প্রচার কেন্দ্র রয়েছে। বিভাগীয় শহরগুলোতেও সম্প্রচার কেন্দ্র করা হলে এর সংখ্যা হবে আটটি।

এ সময় রাজনৈতিক নানা ইস্যুতেও কথা বলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন, ‘রাজনীতিতে যারা জনগণের ভোট ও রায়ের ওপর নির্ভর করে, তাদের জন্য নির্বাচন বর্জন আত্মহনের মতো সিদ্ধান্ত, কিন্তু যারা পেছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় যেতে চায়, তারা নির্বাচন বর্জন করতে পারে।

‘পত্রিকায় দেখলাম বিএনপি নাকি সিদ্ধান্ত নিয়েছে, এই সরকারের অধীনে কোনো নির্বাচনে যাবে না। ২০১৪ সালে বিএনপি নির্বাচনে যায়নি, কিন্তু নির্বাচন হয়েছে এবং দেশে সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা বজায় রয়েছে। ২০১৮ সালেও বিএনপি নির্বাচনে যাবে-যাবে না করে গাধার জল ঘোলা করে খাওয়ার মতো শেষে গেছে। তাই তাদের এ সিদ্ধান্তই থাকবে কিনা জানি না, কিন্তু বিএনপির জন্য এ সিদ্ধান্ত আত্মহননমূলক। অবশ্য বিএনপির সবসময় পেছনের দরজাটাই পছন্দ।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপির রাজনীতি মিথ্যাচার আর ষড়যন্ত্রের ওপর প্রতিষ্ঠিত। গত সাড়ে ১২ বছর ধরে তাদের রাজনীতিটা ছিল জনগণের বিপক্ষে।

‘জনগণের ওপর পেট্রোলবোমা নিক্ষেপ করা, হরতাল-অবরোধের নামে জনগণকে বন্দী করে রাখা এসবের মধ্যেই বিএনপির রাজনীতিটা সীমাবদ্ধ ছিল। এ কারণে প্রতিনিয়ত তারা জনগণ থেকে দূরে সরে গেছে এবং এই প্রেক্ষাপটে তারা সিরিজ বৈঠক করেছে। তাদের উচিত জনগণের সঙ্গে বৈরিতার রাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসা।’

আরও পড়ুন:
চালু থাকবে যেসব অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনিবন্ধিত সব নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ

শেয়ার করুন

প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসায় জাতিসংঘ মহাসচিব

প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসায় জাতিসংঘ মহাসচিব

জাতিসংঘ সদরদপ্তরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরেস। ছবি: সংগৃহীত

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন বলেন, ‘নিউ ইয়র্কের লটে নিউইয়র্ক প্যালেসে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় অংশ নেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরেস। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বের প্রশংসা করেন তিনি।’

বাংলাদেশের বিস্ময়কর উন্নয়ন এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ঠ ও দূরদর্শী নেতৃত্বের ভূয়শী প্রশংসা করেছেন জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তনিও গুতেরেস।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের লটে নিউইয়র্ক প্যালেসে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় অংশ নেন জাতিসংঘ মহাসচিব। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বের প্রশংসা করেন তিনি।

পরে এক ব্রিফিংয়ে উপস্থিত গণমাধ্যমকর্মীদের এ কথা জানিয়েছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

তিনি বলেন, ‘বৈঠকের শুরুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহাসচিব গুতেরেসকে স্বাগত জানান। বাংলাদেশের অগ্রাধিকারগুলোকে জাতিসংঘ গুরুত্ব দেয় জানিয়ে মহাসচিব প্রধানমন্ত্রীকে বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন এবং টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের মত বাংলাদেশের অগ্রাধিকারগুলো জাতিসংঘেরও অগ্রাধিকার।

এ সময় জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা মিশনের উচ্চপদে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর আরও বেশি সদস্যকে নিযুক্ত করতে গুতেরেসের প্রতি আহ্বান জানান প্রধানমন্ত্রী।

এ প্রসঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘গুতেরেস এ আহ্বানকে ইতিবাচক হিসেবে দেখেছেন। তিনি এটিকে ন্যায্য মনে করেন ও বাংলাদেশের জন্য আরও কিছু করতে চান।’

গতিশীল অর্থনীতির বাংলাদেশকে জাতিসংঘ ‘রোল মডেল’ হিসেবে স্বীকৃতি দিয়েছে বলেও জানান মোমেন।

প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসায় জাতিসংঘ মহাসচিব
জাতিসংঘ সদরদপ্তরে নেদারল্যান্ডের রাণী ম্যাক্সিমার সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী।

মহাসচিবের পাশাপাশি জাতিসংঘ সদরদপ্তরে নেদারল্যান্ডের রাণী ম্যাক্সিমা, ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট নগুয়েন জুয়ান ফুক এবং মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মাদ সহিলের সঙ্গেও বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

নেদারল্যান্ডের রাণী ম্যাক্সিমার সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় আলোচনায় শেখ হাসিনা বলেন, প্রাকৃতিক দুর্যোগের কারণে ক্ষয়ক্ষতি সামলাতে তার সরকার ইন্স্যুরেন্স ব্যবস্থা চালু করার চিন্তা ভাবনা করছে।

এ সময় পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম ও জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাবাব ফাতিমা উপস্থিত ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসায় জাতিসংঘ মহাসচিব
ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট নগুয়েন জুয়ান ফুকের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহাম্মাদ সহিলের সঙ্গে বৈঠকের ব্যাপারে ড. মোমেন বলেন, ‘মালে ও চট্টগ্রামের মধ্যে বাণিজ্যিক জাহাজ চালু করার ব্যাপারে দুই দেশ এক সঙ্গে কাজ করছে।’

ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট নগুয়েন জুয়ান ফুকের সঙ্গে বৈঠকে রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে প্রত্যাবাসনে মিয়ানমারের ওপর চাপ প্রয়োগের অনুরোধ জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আরও পড়ুন:
চালু থাকবে যেসব অনলাইন নিউজ পোর্টাল
অনিবন্ধিত সব নিউজ পোর্টাল বন্ধের নির্দেশ

শেয়ার করুন