× হোম জাতীয় রাজধানী সারা দেশ অনুসন্ধান বিশেষ রাজনীতি আইন-অপরাধ ফলোআপ কৃষি বিজ্ঞান চাকরি-ক্যারিয়ার প্রযুক্তি উদ্যোগ আয়োজন ফোরাম অন্যান্য ঐতিহ্য বিনোদন সাহিত্য ইভেন্ট শিল্প উৎসব ধর্ম ট্রেন্ড রূপচর্চা টিপস ফুড অ্যান্ড ট্রাভেল সোশ্যাল মিডিয়া বিচিত্র সিটিজেন জার্নালিজম ব্যাংক পুঁজিবাজার বিমা বাজার অন্যান্য ট্রান্সজেন্ডার নারী পুরুষ নির্বাচন রেস অন্যান্য স্বপ্ন বাজেট আরব বিশ্ব পরিবেশ কী-কেন ১৫ আগস্ট আফগানিস্তান বিশ্লেষণ ইন্টারভিউ মুজিব শতবর্ষ ভিডিও ক্রিকেট প্রবাসী দক্ষিণ এশিয়া আমেরিকা ইউরোপ সিনেমা নাটক মিউজিক শোবিজ অন্যান্য ক্যাম্পাস পরীক্ষা শিক্ষক গবেষণা অন্যান্য কোভিড ১৯ শারীরিক স্বাস্থ্য মানসিক স্বাস্থ্য যৌনতা-প্রজনন অন্যান্য উদ্ভাবন আফ্রিকা ফুটবল ভাষান্তর অন্যান্য ব্লকচেইন অন্যান্য পডকাস্ট আমাদের সম্পর্কে যোগাযোগ প্রাইভেসি পলিসি

বাংলাদেশ
Taking five classes alone
google_news print-icon

স্কুলে একমাত্র শিক্ষক

স্কুলে-একমাত্র-শিক্ষক
বিদ্যালয়ের অন্য শিক্ষকরা অবসরে যাওয়ায় একাই পাঁচ শ্রেণির পাঠদান করছেন কাজল রেখা। ছবি: নিউজবাংলা
করোনাভাইরাস মহামারিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় তেমন সমস্যা হয়নি। তবে রোববার থেকে বিদ্যালয় খোলার পর সব শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পাঠদান একাই করাতে হচ্ছে কাজল রেখাকে। এতে চরম বিপত্তিতে পড়েছেন তিনি।

ভোলার লালমোহনের ১৬৩ নম্বর কুমারখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠা হয় ১৯৯১ সালে। ২০১৩ সালে জাতীয়করণের আওতায় আসা বিদ্যায়টিতে এখন শিক্ষার্থী আছে ১২৪ জন।

প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত এসব শিক্ষার্থীকে এখন পাঠদান করছেন মাত্র একজন শিক্ষক। বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্বও সামলাচ্ছেন তিনি।

বিদ্যালয়ের বাকি তিন শিক্ষক অবসরে গেলেও তাদের জায়গায় নতুন কাউকে পদায়ন না করায় সৃষ্টি হয়েছে এ সমস্যা।

বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানায়, প্রথম থেকে বিদ্যালয়টিতে শিক্ষক ছিলেন চারজন। পর্যায়ক্রমে ২০২০ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত কাজল রেখা নামের এক শিক্ষক ছাড়া বাকি সবাই অবসরে যান। চলতি বছরের ১ জানুয়ারি ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের দায়িত্ব পান কাজল রেখা। এরপর থেকে একাই বিদ্যালয়ের সব দায়িত্ব সামলাচ্ছেন।

করোনাভাইরাস মহামারিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় তেমন সমস্যা হয়নি। তবে রোববার থেকে বিদ্যালয় খোলার পর সব শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পাঠদান একাই করাতে হচ্ছে কাজল রেখাকে। এতে চরম বিপত্তিতে পড়েছেন তিনি। বিদ্যালয়টিতে চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীও নেই।

কয়েকজন অভিভাবক জানান, একজন শিক্ষিকা দিয়ে পুরো স্কুলের এত শিক্ষার্থীর পাঠদান কোনোভাবেই সম্ভব না। শিগগিরই এখানে আরও শিক্ষকের পদায়ন জরুরি।

বিদ্যালয়টির বর্তমান ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক কাজল রেখা বলেন, ‘একা বিদ্যালয়ের এত শিক্ষার্থীকে পড়ানো ব্যাপক কষ্টসাধ্য। তাই দ্রুত বিদ্যালয়টিতে আরও শিক্ষক পদায়ন করা প্রয়োজন।’

লালমোহন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আক্তারুজ্জামান মিলন বলেন, ‘আগে বিষয়টি জানা ছিল না। এখন জেনেছি। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সেখানে শিক্ষক পদায়নের ব্যবস্থা করা হবে।’

আরও পড়ুন:
শিক্ষকদের জীবনমান উন্নয়নে কাজ করছে সরকার: দীপু মনি
দৃষ্টি নেই, তবু ছড়াচ্ছেন জ্ঞানের আলো

মন্তব্য

আরও পড়ুন

বাংলাদেশ
25 injured in UP election clash in Gopalganj

গোপালগঞ্জে ইউপি নির্বাচনে সংঘর্ষ গুলি, আহত ২৫

গোপালগঞ্জে ইউপি নির্বাচনে সংঘর্ষ গুলি, আহত ২৫ সদর উপজেলার লতিফপুর ইউপি নির্বাচনে সংঘর্ষ ও গুলির ঘটনায় আহতদের উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসা দেয়া হয়। ছবি: নিউজবাংলা
সদর উপজেলার লতিফপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে ফল বাতিলের দাবিতে তিন মেম্বার প্রার্থীর সমর্থকরা হামলা চালালে সংঘর্ষ বাধে। এক পর্যায়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে পুলিশ গুলি চালায়। আহত হয়েছেন আইন-শৃংখলা বাহিনীর ১০ সদস্যসহ ২৫ জন। দুজনকে আটক করা হয়েছে।

গোপালগঞ্জ সদরে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সংঘর্ষ, পুলিশের গুলিবর্ষণের ঘটনায় কমপক্ষে ২৫জন আহত হয়েছে। তাদের মধ্যে সদর থানার ওসিসহ আইন-শৃংখলা বাহিনীর ১০ সদস্য রয়েছেন।

সোমবার সদর উপজেলার লতিফপুর ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শেষে ফল ঘোষণা করা হয়। সন্ধ্যার দিকে ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ফল বাতিলের দাবিতে পরাজিত তিন প্রার্থীর (মেম্বার) সমর্থকেরা নির্বাচনী মালামাল (ইভিএম) আটকে দেয়। এ নিয়ে পুলিশের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ বাধে। এ সময় সদর সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও ওসির গাড়ি ভাংচুর করা হয়।

সোমবার সন্ধ্যায় ৫ নম্বর ওয়ার্ডের চরমানিকদাহ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষকালে সদর থানার ওসি মো. জাবেদ মাসুদ ও আইন-শৃংখলা বাহিনীর ১০ সদস্যসহ কমপক্ষে ২৫ জন আহত হন। তাদের মধ্যে পুলিশের গুলিতে আহত হয়েছেন কমপক্ষে তিনজন।

আহতদের মধ্যে রয়েছেন- সদর থানার ওসি মো. জাবেদ মাসুদ, এসআই নাজমুল আলম, এএসআই আসাদুজ্জামান, কনস্টেবল রোকন মিয়া, মুস্তাফিজুর রহমান ও পারভেজ; ২৩ আনসার ব্যাটেলিয়ানের সহকারী প্লাটুন কমান্ডার মো. হায়দার আলী, আনসার সদস্য সবুজ বালা, শাওন বিশ্বাস, লক্ষ্মী বিশ্বাস ও এসিল্যান্ডের ড্রাইভার ইব্রাহিম শরীফ।

এছাড়া পুলিশের গুলিতে আহত হয়েছেন কালাম শেখ, ইয়াসিন শেখ ও সম্রাট মোল্লা। গ্রেপ্তার এড়াতে আহত অন্যরা শহরের বিভিন্ন প্রাইভেট ক্লিনিকে চিকিৎসা নিয়েছেন।

সদর থানার ওসি জাবেদ মাসুদ রাতে জানান, এলাকার পরিস্থিতি এখন পুলিশের নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। এ ঘটনায় খাইরুল কাজী ও কালাম শেখ নামে দুজনকে আটক করা হয়েছে।

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Robbery arrested in Kurigram impersonating a journalist 4

কুড়িগ্রামে সাংবাদিক পরিচয়ে ছিনতাই, গ্রেপ্তার ৪

কুড়িগ্রামে সাংবাদিক পরিচয়ে ছিনতাই, গ্রেপ্তার ৪ কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলায় এক নামধারী সাংবাদিকসহ চার ছিনতাইকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। ছবি: নিউজবাংলা
রোববার বিকাশ এজেন্ট জনতা ট্রেডার্স কর্মী শুভ কুমার রায় ও বিদ্যুৎচন্দ্র বর্মণ ভূরুঙ্গামারী ইসলামী ব্যাংক শাখা থেকে ১৫ লাখ টাকা তুলে মোটরসাইকেলে চড়ে কচাকাটা যাচ্ছিল। পথিমধ্যে লক্ষিমোড়ে ছিনতাইকারীরা তাদের থামিয়ে টাকা ভর্তি ব্যাগটি ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যান। পরে পুলিশে খবর দেয়া হলে ভূরুঙ্গামারী ও কচাকাটা থানা পুলিশ যৌথ অভিযান পরিচালনা করে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করে।

বিকাশ এজেন্টের ১৫ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলায় এক নামধারী সাংবাদিকসহ চার ছিনতাইকারীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

সোমবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে ভূরুঙ্গামারী সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার মোর্শেদুল হাসান এসব তথ্য জানান।

তিনি জানান, ছিনতাইয়ের ঘটনায় মূল পরিকল্পনাকারী রুহুল আমিন, সহযোগী প্রসেনজিৎ রায়, খাদেমুল ইসলাম এবং মোন্নাফ আলীসহ চার ছিনতাইকারীকে পুলিশ গ্রেপ্তার করেছে। এদের মধ্যে খাদেমুল ইসলাম লাল দৈনিক চৌকশ নামে একটি পত্রিকার প্রতিনিধি এবং নাগেশ্বরী রিপোর্টার্স ক্লাবের সহ-সাধারণ সম্পাদক।

তাদের কাছ থেকে ছিনতাইয়ে ব্যবহৃত একটি মোটর সাইকেল, ৩টি মোবাইল ও ছিনতাই করা টাকার মধ্যে ৭ লাখ ৬০ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়েছে।

রোববার বিকাশ এজেন্ট জনতা ট্রেডার্স কর্মী শুভ কুমার রায় ও বিদ্যুৎচন্দ্র বর্মণ ভূরুঙ্গামারী ইসলামী ব্যাংক শাখা থেকে ১৫ লাখ টাকা তুলে মোটরসাইকেলে চড়ে কচাকাটা যাচ্ছিল। পথিমধ্যে লক্ষিমোড়ে ছিনতাইকারীরা তাদের থামিয়ে টাকা ভর্তি ব্যাগটি ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যান। পরে পুলিশে খবর দেয়া হলে ভূরুঙ্গামারী ও কচাকাটা থানা পুলিশ যৌথ অভিযান পরিচালনা করে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করে।

আরও পড়ুন:
বাবা-মার কাছে যেতে চায় পূর্ণিমা
আ.লীগ কার্যালয় ভাঙচুরের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন
ভবঘুরে নারীর সন্তান প্রসব, পিতৃত্বের খোঁজে পুলিশ
ছাত্রলীগ নেতার কবজি কাটার আসামি ১৬ জন
ভাইয়ের পরিচয়ে সরকারি চাকরি, দুই জনের বিরুদ্ধে মামলা

মন্তব্য

বাংলাদেশ
There is no separate admission test for EB in batch system

গুচ্ছে থাকতে চায় না ইবি, নিতে চায় আলাদা ভর্তি পরীক্ষা

গুচ্ছে থাকতে চায় না ইবি, নিতে চায় আলাদা ভর্তি পরীক্ষা কুষ্টিয়ায় অবস্থিত ইবির ফটক। ছবি: সংগৃহীত
ইবির উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, ‘শিক্ষকরা সবাই গুচ্ছের বিপক্ষে মত দিয়েছেন। যেহেতু ভর্তি কার্যক্রম তারাই পরিচালনা করবেন তাই তাদের মত গ্রহণযোগ্যতা পাবে। সোমবার এ বিষয়ে ঢাকায় ইউজিসির সাধারণ সভা রয়েছে। আশা করি এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসবে।’

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) পরবর্তী ২০২৩-২০২৪ শিক্ষাবর্ষে গুচ্ছ পদ্ধতি থেকে বেরিয়ে নিজস্ব প্রক্রিয়ায় ভর্তি পরীক্ষা নিতে চায় বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এইচ এম আলী হাসান।

১২৫ তম একাডেমিক কাউন্সিলের জরুরি সভায় রোববার সকাল ১১টার দিকে গুচ্ছে না যেতে মত দেন সদস্যরা।

সভায় উপস্থিত ছিলেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম, উপউপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহবুবুর রহমান, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আলমগীর হাসান ভূঁইয়া এবং বিভিন্ন বিভাগ ও অনুষদের ডীন, শিক্ষকসহ অন্তত ১৬০ জন।

এদিন সভায় একমাত্র এজেন্ডা ছিল গুচ্ছ ভর্তি প্রক্রিয়ায় ইবি অংশ নিবে কি না বিষয়টি চূড়ান্তকরণ। সভায় উপস্থিত সব শিক্ষক গুচ্ছের ভোগান্তি, সমস্যাগুলো তুলে ধরে নিজস্ব ভর্তি প্রক্রিয়ায় পরীক্ষা নেয়ার পক্ষে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

এ বিষয়ে শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. তপন কুমার জোদ্দার বলেন, ‘ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকরা গুচ্ছ থেকে বের হয়ে এসে নিজস্ব পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা নিতে দাবি জানিয়ে আসছিলেন। উপাচার্য বরাবর লিখিত দাবিও জানানো হয়েছিল। রোববারের সভায় ভর্তি প্রক্রিয়ার দীর্ঘসূত্রতা, সমন্বয়হীনতা ও উচ্চশিক্ষার বৈষম্য ইত্যাদি কারণে গুচ্ছে থাকার বিপক্ষে মত দেন শিক্ষকরা।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা আগামী ৩০ জুনের মধ্যে ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি প্রক্রিয়া শেষ করে পহেলা জুলাই থেকে ক্লাস শুরু করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে অনুরোধ জানিয়েছি।’

উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম বলেন, ‘অল্প সময়ের মধ্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ভর্তি কমিটির সঙ্গে মিটিং ডেকে এটি বাস্তবায়নের জন্য কার্যক্রম শুরু করবেন।’

তিনি আরও বলেন, ‘শিক্ষকরা সবাই গুচ্ছের বিপক্ষে মত দিয়েছেন। যেহেতু ভর্তি কার্যক্রম তারাই পরিচালনা করবেন তাই তাদের মত গ্রহণযোগ্যতা পাবে। সোমবার এ বিষয়ে ঢাকায় ইউজিসির সাধারণ সভা রয়েছে। আশা করি এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসবে।’

আরও পড়ুন:
ফুলপরীকে নির্যাতন: সানজিদাসহ পাঁচজনকে বহিষ্কার ইবির
ফুলপরীকে নির্যাতন: সানজিদাসহ পাঁচজনকে বহিষ্কার ছাত্রলীগের
র‌্যাগিংয়ে ধ্বংস হচ্ছে ছাত্ররাজনীতির গৌরবোজ্জ্বল অতীত: হাইকোর্ট
ইবিতে নির্যাতন: ৫ ছাত্রীকে বহিষ্কারের নির্দেশ হাইকোর্টের
ইবি ছাত্রী নির্যাতনের ঘটনায় হাইকোর্টের আদেশ বুধবার

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Two brothers went out together one returned frozen

দুই ভাই বের হলেন একসঙ্গে, একজন ফিরলেন নিথর হয়ে

দুই ভাই বের হলেন একসঙ্গে, একজন ফিরলেন নিথর হয়ে মো. আশফাকুজ্জামান লিংকন। ছবি: সংগৃহীত
আশফাকুজ্জামানের মেজো মামা হুমায়ুন কবির বলেন, ‘মরদেহ নিয়ে রোববার বিকেল ৩টার দিকে খুলনার উদ্দেশে বের হয় আশফাকুজ্জামানের ছোট ভাই ইশরাকুজ্জামান। এশার নামাজের পর জানাজা শেষে টুটপাড়া কবরস্থানে আশফাকুজ্জামানকে দাফন করা হয়।’ 

খুলনা নগরের টুটপাড়া এলাকা থেকে রোববার ভোর চারটার দিকে দুই ভাই বাড়ি থেকে বের হন। খুলনার রয়েল মোড় থেকে ইমাদ পরিবহনের বাসে ওঠেন। ছোট ভাই মো. ইশরাকুজ্জামান গোপালগঞ্জে নেমে যান গাড়ি থেকে। তবে গাড়িতে ছিলেন বড় ভাই মো. আশফাকুজ্জামান লিংকন। মাদারীপুরের শিবচর উপজেলার কুতুবপুর এলাকার পদ্মাসেতুর এক্সপ্রেসওয়েতে বাস খাদে পড়ে তিনি নিহত হন।

দুই জনের মধ্য ছোট ভাই মো. ইশরাকুজ্জামান একটি বেসরকারি ব্যাংকের রাজবাড়ী শাখার ব্যবস্থাপক হিসেবে কর্মরত। নিহত ৪৫ বছর বয়সী আশফাকুজ্জামান লিংকন ছিলেন ঠিকাদার। এই দুই ভাইয়ের মধ্যে সম্পর্ক ছিল বন্ধুত্বের মতন। বড় ভাইয়ের মৃত্যুর পর তার মরদেহ নিয়ে বাড়িতে ফিরতে হয়েছে ছোট ভাইকে।

তাদের বাড়ি গোপালগঞ্জে হলেও দীর্ঘদিন ধরে তারা খুলনা নগরের টুটপাড়া এলাকায় ভাড়া বাড়িতে থাকেন। দুই ভাই ও এক বোনের মধ্যে সবার বড় আশফাকুজ্জামান। ছোট ভাই ও বোনের বিয়ে হয়ে গেলেও তিনি বিয়ে করেননি।

রোববার দুপুর ১২টার দিকে আশফাকুজ্জামানের মামারা নিশ্চিত হন সড়ক দুর্ঘটনায় আশফাকুজ্জামান নিহত হয়েছেন। রোববার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে আশফাকুজ্জামানের বাবা শাজাহান মোল্লাকে ছেলের মৃত্যুর খবর জানানো হয়।

রোববার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে টুটপাড়ার নজরুল ইসলাম সড়কে আশফাকুজ্জামানদের বাড়ির সামনে গিয়ে দেখা যায় খাটিয়া প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে। গোসল করানোর জায়গাও প্রস্তুত। বাড়ির সামনের গলির মুখে মানুষের জটলা। তবে কেউ বাড়ির দিকে যাচ্ছেন না। এর কারণ জানা গেল তাদের বাড়ির মধ্যে প্রবেশ করে।

আশফাকুজ্জামানের মেজো মামা হুমায়ুন কবির বলেন, ‘মরদেহ নিয়ে রোববার বিকেল ৩টার দিকে খুলনার উদ্দেশে বের হয় আশফাকুজ্জামানের ছোট ভাই ইশরাকুজ্জামান। এশার নামাজের পর জানাজা শেষে টুটপাড়া কবরস্থানে আশফাকুজ্জামানকে দাফন করা হয়।’

আরও পড়ুন:
এক্সপ্রেসওয়ের রেলিং ভেঙে বাস খাদে, নিহত বেড়ে ১৯
মাদারীপুরে বাস খাদে পড়ার ঘটনায় তদন্ত কমিটি
এক্সপ্রেসওয়ের রেলিং ভেঙে বাস খাদে, নিহত ১৭
রাঙামা‌টিতে পর্যটকবাহী বাস উল্টে নিহত ২
মগবাজারে ট্রেনের ধাক্কায় পুলিশ সদস্য নিহত

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Alleged attack by miscreants at twilight of Egarosindu in Kishoreganj

কিশোরগঞ্জে ট্রেনে দুর্বৃত্তদের হামলা

কিশোরগঞ্জে ট্রেনে দুর্বৃত্তদের হামলা কিশোরগঞ্জে এগারোসিন্দুর গোধূলিতে দুর্বৃত্তদের হামলায় ভেঙে যায় জানালার কাচ। ছবি: নিউজবাংলা
কিশোরগঞ্জ রেলওয়ে থানার ওসি এ.কে.এম আমিনুল হক জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি।

কিশোরগঞ্জে এগারোসিন্দুর গোধূলি নামের ট্রেনে হামলা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা।

জেলার কটিয়াদী উপজেলার মানিকখালী এলাকায় রোববার রাত সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

ওই সময় ট্রেনের জানালার কাচ ভেঙে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ ছাড়াও ট্রেনের গার্ড ব্রেকেও হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা।

এ ঘটনায় ট্রেনের সহকারী লোকোমোটিভ মাস্টার মো. কাওছার হোসেনসহ তিন থেকে চার যাত্রী আহত হয়েছেন।

ট্রেনের সহকারী লোকোমোটিভ মাস্টার মো. কাওছার হোসেন রোববার রাত ১১টা ৫৪ মিনিটে এ বিষয়ে তার ব্যক্তিগত ফেসবুক অ্যাকাউন্ট থেকে একটি পোস্ট দিয়েছেন।

সেই পোস্টে তিনি লিখেন, ‘আজ এগারোসিন্দুর গোধূলি (৭৪৯) কাজ করছি। সরারচর-মানিকখালী সেকশনে যে মেলা হয়, সেখানে স্টপেজের কোনো কন্ট্রোল অর্ডার নেই কিংবা কোনো স্টেশনের মাস্টার ইনফর্ম করেননি। সেকশনে কেন মেলা স্থানে দাঁড়াইলাম না, সে জন্য মানিকখালী স্টেশনে বৃষ্টির মতো পাথর মেরেছে একদল বে… পোলাপান, এলএম মো. মহসিন আলী ভাইয়ের কিছু হয়নি, কিন্তু আমার হাত কেটে গেছে। নিজেদের জীবন পাথর সন্ত্রাসীদের হাত থেকে রক্ষা করতে পেরেছি, তাই মহান আল্লাহর কাছে শুকরিয়া জ্ঞাপন করছি।

‘লোকোমোটিভের এল/এস উইন্ডো গ্লাস সম্পূর্ণরূপে, আর/এস লুকিং গ্লাস সম্পূর্ণরূপে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। হামলা শুধু লোকোমোটিভেই করে ক্ষান্ত হয়নি, আমির হোসেন ভাইয়ের গার্ড ব্রেকে তদ্রূপ হামলা চালিয়েছে।’

ফেসবুক স্ট্যাটাসের বিষয়টি নিশ্চিত করে ট্রেনের সহকারী লোকোমোটিভ মাস্টার মো. কাওছার হোসেন বলেন, ‘রোববার রাতে মানিকখালী স্টেশনের খানিকটা আগে মণ্ডলভোগ নামে একটি এলাকায় একটি মেলায় যাওয়ার জন্য ভৈরব ও কুলিয়ারচর স্টেশন প্রায় ২০০ থেকে ৩০০ যাত্রী ওঠে। তাদের দাবি ছিল মণ্ডলভোগ এলাকায় ট্রেন থামানোর, কিন্তু স্টেশন থেকে কোনো নির্দেশনা না থাকায় ট্রেন থামে মানিকখালী স্টেশনে।

‘ট্রেন থামার পরেই কিছু লোক নেমে যায় আর বাকিরা ট্রেনের চালকের রুমে এসে ভাঙচুর চালায়। আর ট্রেনের নিচে থাকা লোকজন বৃষ্টির মতো পাথর নিক্ষেপ করতে থাকেন। কোনো রকমে আমরা রক্ষা পাই। ট্রেনের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। কয়েকজন যাত্রীও আহত হয়েছেন, তবে তাদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি।’

কিশোরগঞ্জ রেলওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এ.কে.এম আমিনুল হক জানান, খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। এ ঘটনায় কাউকে আটক করা যায়নি।

কিশোরগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনের মাস্টার ইউসুফ জানান, চিকিৎসার কাজে তিনি ঢাকায় অবস্থান করছেন। ট্রেনে হামলার বিষয়টি শুনেছেন।

এ বিষয়ে থানায় কোনো অভিযোগ দিয়েছেন কি না এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, ‘এটা তো উৎসুক জনতা হামলা করেছে। আমরা তো ওইভাবে কাউকে চিনিও না, জানিও না। বিষয়টি নিয়ে পুলিশ কাজ করছে।’

আরও পড়ুন:
গ্রিসে দুই ট্রেনের সংঘর্ষে নিহত ৩২, আহত ৮৫
উপজেলা চেয়ারম্যানকে গুলির ঘটনায় মামলা, আটক ৬
উপজেলা চেয়ারম্যানকে গুলি: বিচারের আশ্বাসে সড়ক ছাড়লেন সমর্থকরা
ছাত্রলী‌গের বিরুদ্ধে যুবদল ছাত্রদলের তিন নেতাকে পি‌টিয়ে আহতের অভিযোগ
সন্ত্রাসীদের কোপে আহতের ৪ দিন পর ব্যবসায়ীর মৃত্যু

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Dhaka College student Masuds dream did not come true

স্বপ্ন পূরণ হলো না ঢাকা কলেজের ছাত্র মাসুদের

স্বপ্ন পূরণ হলো না ঢাকা কলেজের ছাত্র মাসুদের মাসুদ খান। ছবি: সংগৃহীত
মাসুদ খানের ভাই শফিক খান বলেন, ‘কথা ছিল বড় চাকরি করে পরিবারের দায়িত্ব নিবে মাসুদ। মাস্টার্স পাস করে ঢাকাতেই ছোটখাটো কম্পিউটারের কাজ করত। যা ইনকাম করতো তা দিয়ে নিজে চলে বাড়িতেও টাকা-পয়সা পাঠাত। আর মাঝে মাঝে বড় চাকরিতে যোগ দিতে পরীক্ষা দিত। অল্প দিনের মধ্যেই চাকরি পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেই চাকরি আর করা হলো না। কীভাবে এই শোক মেনে নিব। আমার প্রাণের ছোট ভাইকে আর পাব না, এটা মানতে পারছি না।’

আশা ছিল বড় চাকরি করে বাবা-মায়ের স্বপ্ন পূরণ করবেন। বাড়িতে বড় দালান বানিয়ে পরিবারকে সুখে রাখবেন। কিন্তু সেই আশা অধরাই থেকে গেল মাসুদ খানের।

পদ্মা সেতুর এক্সপ্রেসওয়ের শিবচরের কুতুবপুর এলাকার রোববার সকাল ৮টার দিকে দুর্ঘটনায় নিহত হন মাসুদ।

গোপালগঞ্জের আদমপুর গ্রামের আমজেদ আলী খানের মাস্টার্স পাস করা ছেলে ২৭ বছর বয়সী মাসুদ খান। তিনি ঢাকা কলেজ থেকে দর্শন বিভাগের মাস্টার্স পাস করেন।

নিহত মাসুদের পরিবারের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, গত তিন দিন আগে ঢাকা থেকে মা-বাবা ও পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে বাড়িতে আসেন মাসুদ। রোববার খুব ভোরে ইমাদ পরিবহনে ঢাকা যাচ্ছিলেন। কিন্তু ঢাকা আর যাওয়া হলো না। বাস খাদে পড়ে সমাধি হলো একজন স্বপ্নবাজ তরুণের।

মরদেহ নিতে এসে মাসুদের বড় ভাই শফিক খান বারবার ভাইয়ের জন্য মূর্ছা যাচ্ছিলেন। কোনোভাবেই ভাইয়ের এমন করুণ মৃত্যু তিনি মেনে নিতে পারছেন না। কান্নায় ভেঙ্গে পড়ছেন শফিক খান।

মাসুদ খানের ভাই শফিক খান বলেন, ‘কথা ছিল বড় চাকরি করে পরিবারের দায়িত্ব নিবে মাসুদ। মাস্টার্স পাস করে ঢাকাতেই ছোটখাটো কম্পিউটারের কাজ করত। যা ইনকাম করতো তা দিয়ে নিজে চলে বাড়িতেও টাকা-পয়সা পাঠাত। আর মাঝে মাঝে বড় চাকরিতে যোগ দিতে পরীক্ষা দিত। অল্প দিনের মধ্যেই চাকরি পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেই চাকরি আর করা হলো না। কীভাবে এই শোক মেনে নিব। আমার প্রাণের ছোট ভাইকে আর পাব না, এটা মানতে পারছি না।’

মাসুদের বন্ধু শাকিব হোসেন বলেন, ‘আমরা একই গ্রামে ছোট থেকে বড় হয়েছি। মাসুদ আমার চেয়েও অনেক মেধাবী ছিল। সে মুকসেদপুর উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এইচএসসি পাস করে ঢাকা কলেজে দর্শন বিভাগের অর্নাস ও মাস্টার্স শেষ করে। আমাকে মাঝে মাঝেই বলতো, বড় চাকরি করে বাবা-মায়ের স্বপ্ন পূরণ করবে। কিন্তু সেই চাকুরি আর তার করা হলো না। তার জন্য বুকটা ভেঙে চৌচির হয়ে যাচ্ছে।’

মাদারীপুরের পুলিশ সুপার মাসুদ আলম জানান, রোববার সকাল ৮টার দিকে খুলনা থেকে ছেড়ে আসা ইমাদ পরিবহনের একটি বাস পদ্মা সেতুর আগে এক্সপ্রেসওয়ের শিবচরের কুতুবপুর এলাকায় নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে খাদে পড়ে যায়। এ সময় দুমড়ে-মুচড়ে যায় বাসটি। এ ঘটনায় নারীসহ ১৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। মাদারীপুর জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঘটনার তদন্তের জন্যে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

আরও পড়ুন:
এক্সপ্রেসওয়ের রেলিং ভেঙে বাস খাদে, নিহত ১৭
রাঙামা‌টিতে পর্যটকবাহী বাস উল্টে নিহত ২
মগবাজারে ট্রেনের ধাক্কায় পুলিশ সদস্য নিহত
বাইকে বন্ধুর বিয়ে থেকে ফেরার পথে ট্রাকের ধাক্কায় নিহত
বাসচাপায় প্রাণ গেল অটোরিকশার তিন যাত্রীর

মন্তব্য

বাংলাদেশ
Police case in the name of the owner of the house in the case of 19 deaths in Madaripur

মাদারীপুরে ১৯ প্রাণহানি: বাসমালিকের নামে মামলা পুলিশের

মাদারীপুরে ১৯ প্রাণহানি: বাসমালিকের নামে মামলা পুলিশের মাদারীপুরের শিবচরে রোববার সকালে খাদে পড়ে দুমড়েমুচড়ে যায় ইমাদ পরিবহনের বাসটি। ছবি: নিউজবাংলা
খুলনা থেকে যাত্রী বোঝাই করে ইমাদ পরিবহনের বাসটি রোববার সকালে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসে। এটি পদ্মা সেতুর আগে ঢাকা-খুলনা এক্সপ্রেসওয়েতে মাদারীপুরের শিবচরের কুতুবপুর সীমানা এলাকায় এলে সামনের চাকা ফেটে যায়। এতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাসটি নিচে পড়ে যায়।

মাদারীপুরে পদ্মা সেতুর এক্সপ্রেসওয়েতে রোববার সকালে ইমাদ পরিবহনের যাত্রীবাহী খাদে পড়ে ১৯ জন নিহতের ঘটনায় মামলা করেছে শিবচর হাইওয়ে থানা পুলিশ।

হাইওয়ে থানার সার্জেন্ট জয়ন্ত দাস রোববার রাত ২টার দিকে মামলাটি করেন, যাতে আসামি করা হয় বাসমালিককে।

শিবচর হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু নাইম মোফাজ্জেল জানান, ইমাদ পরিবহনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাব্বির হোসেনকে আসামি করে মামলাটি করা হয়। বাসটিতে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন, বেপরোয়া গতি ও এর ফিটনেসের বিষয়টি মামলায় উল্লেখ করা হয়।

তিনি জানান, দুর্ঘটনায় চালক ও হেলপার নিহত হওয়ায় তাদের নামে মামলা করা হয়নি। সার্জেন্ট জয়ন্ত দাস মামলার বিষয়টি তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

খুলনা থেকে যাত্রী বোঝাই করে ইমাদ পরিবহনের বাসটি রোববার সকালে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসে। এটি পদ্মা সেতুর আগে ঢাকা-খুলনা এক্সপ্রেসওয়েতে মাদারীপুরের শিবচরের কুতুবপুর সীমানা এলাকায় এলে সামনের চাকা ফেটে যায়। এতে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে বাসটি নিচে পড়ে যায়।

ওই সময় দুমড়েমুচড়ে যায় বাসটি। এতে ঘটনাস্থলেই ১৪ জন নিহত হয়। পরে হাসপাতালে আরও পাঁচজনের মৃত্যু হয়।

আরও পড়ুন:
মাদারীপুরে বাস খাদে পড়ার ঘটনায় তদন্ত কমিটি
এক্সপ্রেসওয়ের রেলিং ভেঙে বাস খাদে, নিহত ১৭
রাঙামা‌টিতে পর্যটকবাহী বাস উল্টে নিহত ২
মগবাজারে ট্রেনের ধাক্কায় পুলিশ সদস্য নিহত
বাইকে বন্ধুর বিয়ে থেকে ফেরার পথে ট্রাকের ধাক্কায় নিহত

মন্তব্য

p
উপরে