উড়ে এসে জুড়ে বসাদের দায়িত্ববোধ থাকে না: প্রধানমন্ত্রী

উড়ে এসে জুড়ে বসাদের দায়িত্ববোধ থাকে না: প্রধানমন্ত্রী

ভূমি ডাটা ব্যাংকসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত ছিলেন সরকারপ্রধান। ছবি: সংগৃহীত

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আসলে বিএনপি-জামায়াত এরা তো আর মানুষের জন্য কাজ করে না। অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী একটা মিলিটারি ডিক্টেটরের হাতে তৈরি করা এ সংগঠন। কাজেই মানুষের প্রতি এদের কোনো দায়িত্ববোধও নেই, দেশের জন্যও নেই। ক্ষমতা আর ক্ষমতায় থেকে টাকা বাড়ানো, জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস-দুর্নীতি এটাই তাদের কাজ এবং সেটাই তারা করেছে।’

উড়ে এসে ক্ষমতায় জুড়ে বসা ব্যক্তিদের দেশের মানুষের প্রতি কোনো দায়িত্ববোধ থাকে না বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে বুধবার সকালে ভূমি মন্ত্রণালয়ের ভূমি ভবন, উপজেলা ও ইউনিয়নের ভূমি অফিস ভবন, অনলাইন ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধ কার্যক্রম এবং ভূমি ডাটা ব্যাংকের উদ্বোধন অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে যুক্ত ছিলেন সরকারপ্রধান।

এ সময় তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগ যতদিন ক্ষমতায় থাকে দেশের মানুষ সেবা পায়, দেশের উন্নতি হয়। আন্তরিকতার সাথে আমরা কাজ করি। আমরা একটা আদর্শ নিয়ে কাজ করি, একটি নীতি নিয়ে কাজ করি। সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করি। কেন করি?

‘কারণ এ দেশের মানুষের মুক্তির জন্য, স্বাধীনতার জন্য সংগ্রাম করেছে আওয়ামী লীগের কর্মীরা, পাশে থেকেছে জনগণ। উড়ে এসে জুড়ে যারা ক্ষমতায় বসে, তাদের সে দায়বদ্ধতা থাকে না। ক্ষমতাকে তারা ভোগদখলের একটা জায়গা বানায়। অর্থসম্পদ বানানোর একটি মেশিন হিসেবে পায়। আর দেশের মানুষ মরুক, বাঁচুক তাদের কোনো খেয়ালই থাকে না। এটাই হলো বাস্তবতা। তাই আওয়ামী লীগ যখন ক্ষমতায় আসে, তখনই দেশের মানুষের সার্বিক উন্নতি হয়।’

তিনি বলেন, ‘আরও দুর্ভাগ্যের বিষয়, একটি কথা না বলে পারছি না এখানে। বিএনপি-জামায়াত জোট ২০১৩ সালে যেভাবে অগ্নিসন্ত্রাস শুরু করেছিল, তাতে বাংলাদেশের বিভিন্ন অঞ্চলে তারা অনেকগুলো ভূমি অফিস জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দেয়।

‘তারা শুধু ভূমি অফিসই জ্বালায়নি, চলন্ত বাসে যাত্রীরা যাচ্ছে, সেখানে নারী-পুরুষ-শিশু, সেই বাসে আগুন দিয়ে জীবন্ত মানুষ পুড়িয়ে মারে। সিএনজি ড্রাইভার সিএনজি চালিয়ে যাচ্ছে, তাকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মারে। গাড়ি থেকে ড্রাইভারকে বের করে তার গায়ে পেট্রল ঢেলে আগুন জ্বালিয়ে পুড়িয়ে হত্যা করে। এভাবে তারা একটি ধ্বংসযজ্ঞ চালাতে থাকে। সেখানে প্রায় ছয়টি ভূমি অফিসসহ অনেকগুলো ভূমি অফিস নষ্ট করে দেয়। সেগুলো পুড়িয়ে দেয়।’

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, ‘তখন একটা ঘোষণা দিয়েছিলাম যে, যারা এই ভূমি অফিস পোড়াচ্ছে তাদের যেন আর কোনো দিন জমির মালিকানা না থাকে। কারণ তারা তো আগুন দিয়ে পুড়িয়েই দিয়েছে। তারা আর পাবে কেন? এই হুমকির পরে কিন্তু তাদের এই ভূমি অফিস পোড়ানোটা বন্ধ হয়।

‘তাদের এই ধ্বংসযযজ্ঞ আমরা দেখেছি। আসলে বিএনপি-জামায়াত এরা তো আর মানুষের জন্য কাজ করে না। অবৈধভাবে ক্ষমতা দখলকারী একটা মিলিটারি ডিক্টেটরের হাতে তৈরি করা এ সংগঠন। কাজেই মানুষের প্রতি এদের কোনো দায়িত্ববোধও নেই, দেশের জন্যও নেই। ক্ষমতা আর ক্ষমতায় থেকে টাকা বাড়ানো, জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাস-দুর্নীতি এটাই তাদের কাজ এবং সেটাই তারা করেছে।’

দোরগোড়ায় সেবা পৌঁছে দেয়াই লক্ষ্য

সাধারণ মানুষ যেন কোনো ভোগান্তি ছাড়াই সরকারি বিভিন্ন সেবা ঘরে বসেই পায় তা নিশ্চিত করাই ডিজিটাল বাংলাদেশের লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘দ্বিতীয় দফায় যখন আমরা ২০০৯-এ সরকার গঠন করি, তার আগে ২০০৮-এর নির্বাচনে আমরা আমাদের ইশতেহারে ঘোষণা দিয়েছিলাম ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ে তুলব। ডিজিটাল বাংলাদেশ অর্থাৎ প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে সেবাটা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দেয়া এবং মানুষের জীবনটা সহজ করা।

‘দুর্নীতি, অনিয়ম দূর করা—এটাই ছিল আমাদের লক্ষ্য। সেদিকে লক্ষ্য রেখেই আমরা বিভিন্ন পদক্ষেপ নিই এবং ভূমি ব্যবস্থাপনাটাকে ডিজিটাইজড করে মানুষের কাছে সেবাটা পৌঁছে দেয়ার জন্য আর মানুষের অধিকার সুরক্ষিত করবার জন্য আমরা বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছিলাম।’

সরকারপ্রধান বলেন, ‘আমাদের সরকারের নির্বাচনি ইশতেহারে যে রূপকল্প-২০২১ আমরা ঘোষণা দিয়েছিলাম, আমরা একটি সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনাই নিয়েছিলাম। ২০২১-এর মধ্যে বাংলাদেশ কেমন বাংলাদেশ হবে তারই একটি দিকনির্দেশনা আমরা দিয়েছিলাম। পরবর্তী সময়ে ২০৪১ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশ কীভাবে তৈরি হবে আমরা সেই পরিপ্রেক্ষিত পরিকল্পনাও ইতিমধ্যে প্রণয়ণ করেছি।

‘এতে আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে শতভাগ মিউটেশন কার্যক্রম যেন সম্পন্ন হয় এবং বাংলাদেশের ভূমি ব্যবস্থাপনা যেন সম্পূর্ণ ডিজিটাইজড হয়। কারণ মানুষ যেন খামোখা হয়রানির শিকার না হয়, মানুষকে যেন ভোগান্তির শিকার না হতে হয়, দুয়ারে দুয়ারে ঘুরে বেড়াতে না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রেখেই ভূমি সেবাটা যেন হাতের মুঠোয় পায়, সে ব্যবস্থাটাই আমরা করতে চেয়েছি। কাজেই হাতের মুঠোয় ভূমিসেবা নিশ্চিত করতে অনলাইনে খতিয়ান সংগ্রহ, উত্তরাধিকার ক্যালকুলেটর, অনলাইন ডাটাবেজসহ ভূমি সেবার সব ক্ষেত্রে অধিকতর ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহার করা হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘অনলাইনে খতিয়ান সংগ্রহ সিস্টেম বাস্তবায়ন হচ্ছে। এতে ঘরে বসে সহজেই মানুষ তাদের জমির পর্চা পাচ্ছে। এতে তারা খুবই খুশি। সারা বাংলাদেশে প্রায় ৪ কোটি ৯৪ লাখ ডিজিটাইজড খতিয়ান নিয়ে তৈরি করা হয়েছে ভার্চুয়াল রেকর্ড রুম। এই রুম থেকে যে কেউ বিনা পয়সায় তার কাঙ্ক্ষিত খতিয়ান সংগ্রহ করতে পারবে।

‘আর যারা ঘরে বসে কম্পিউটার ব্যবহার করে করতে পারবে না, তাদের জন্য ডিজিটাল সেন্টার করে দেয়া হয়েছে। সেখানেও তারা সেই সেবাটা নিতে পারেন। তাদের জন্য সেই সুযোগটাও আমরা তৈরি করে দিয়েছি। প্রত্যেকটা এলাকায় যেমনটা করা হয়েছে, আবার প্রত্যেক পোস্ট অফিসেও করা হয়েছে, সেখান থেকেই মানুষ সেই সেবাটা নিতে পারে।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ভূমি ব্যবস্থাপনাকে ডিজিটাইজড করতে তিনটি প্রকল্প নেয়া হয়েছে, ভূমি ব্যবস্থাপনা অটোমেশন প্রকল্প, ডিজিটাল পদ্ধতিতে ভূমি জরিপ করার জন্য ভূমি রেকর্ড ও জরিপ অধিদপ্তরে শক্তিশালীকরণ প্রকল্প এবং মৌজা ও ব্লকভিত্তিক ভূমি জোনিং প্রকল্প।

‘এটা এখন পর্যন্ত যতটুকু হয়েছে, আগামীতে সম্পূর্ণভাবে বাস্তবায়িত হবে। এই কাজগুলো শেষ হলে আমি মনে করি বাংলাদেশের জন্য একটি আমূল পরিবর্তন আসবে। মানুষও প্রযুক্তি ব্যবহার করে তার সেবাটা পাবে।’

তিনি বলেন, ‘যেকোনো একজন জমির মালিককে ভূমি উন্নয়ন কর প্রদানের জন্য ইউনিয়ন ভূমি অফিস পর্যন্ত যেতে হয়। কিন্তু আজকের যে পদ্ধতি তাতে অনলাইনেই দিতে পারবেন। আর এখন তো মোবাইল ফোন সকলেরই হাতে। আমরা শুধু মুখেই বলিনি; কাজেও সেটা বাস্তবায়ন করেছি। ভূমি কর প্রদানের জন্য আবশ্যিকভাবে ভূমি অফিস পর্যন্ত যাওয়ার প্রয়োজন হয় না। ডিজিটালাইজড পদ্ধতিতে তিনি কর পরিশোধ করতে পারেন।

‘দেশে-বিদেশে যেখানেই থাকেন, সেখান থেকেই সেটা করতে পারবেন। সে সুযোগটা সৃষ্টি করা হয়েছে। ঘরে বসেই যেন ভূমির মালিক উন্নয়ন কর পরিশোধ করতে পারেন, তার জন্য বাস্তবায়ন করা হচ্ছে অনলাইনে ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধের ডিজিটাল পদ্ধতি। এর মাধ্যমে মানুষের ভোগান্তিও কমে যাবে। তিন কোটি হোল্ডিংয়ের মধ্যে প্রায় এক কোটি হোল্ডিংয়ের ডাটা এন্ট্রির কাজ এরই মধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে যেকোনো নাগরিক যেকোনো স্থান থেকে ভূমি উন্নয়ন কর সংক্রান্ত তথ্য জানতে পারবেন। অনলাইনে পরিশোধ করতে পারবেন, অনলাইনেই দাখিলা পেয়ে যাবেন। এতে সময় বাঁচবে, খরচ বাঁচবে। হয়রানি থেকেই মানুষ রক্ষা পাবে। পাশাপাশি ভূমি উন্নয়ন কর সরাসরি সরকারের কোষাগারে জমা হবে। আগে হয়তো যা পাওয়া যেত কিছু যেত, কিছু যেত না। এখন আর তা হবে না।’

উপজেলা ভূমি অফিস জীর্ণ কেন?

দেশের বিগত কোনো সরকারই উপজেলা ভূমি অফিসগুলো সংস্কারে কোনো উদ্যোগ নেয়নি কেন তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, ‘আমরা ভূমি ব্যবস্থাপনাটা আরও উন্নত করতে চাই। সেই সাথে আমরা জানি, সারা দেশে ঠিকমতো কাজ করা যেত না।

‘কিছুক্ষণ আগে আপনারা যে ভিডিওটা দেখালেন তাতে উপজেলা ভূমি অফিসগুলোর যে জীর্ণ দশা, এই জীর্ণ দশা কেন? আমি জানি না। আমাদের আগে তো আরও অনেকেই ক্ষমতায় এসেছেন। কেন এ ব্যাপারে কোনো সংস্কার করা হয়নি, এটাই বড় প্রশ্ন।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রত্যেকটি এলাকায় আমাদের ভূমি অফিসগুলো উন্নত করার যে পদক্ষেপ আমরা নিয়েছি এবং সেখানে যে কর্মকর্তাদের অভাব ছিল, সেটা পূরণেরও ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। বর্তমানে প্রায় সব উপজেলায় সহকারী ভূমি কমিশনার পদায়ন করা হয়েছে।

‘একই সাথে দাপ্তরিক কাজ পরিচালনা, মোবাইল কোর্ট পরিচালনার জন্য যানবাহন প্রদান করা হয়েছে। এতে প্রশাসনের গতিশীলতা বৃদ্ধি পেয়েছে এবং জনগণকে কাঙ্ক্ষিত সেবাও দিতে পারছে।’

তিনি বলেন, ‘দেশের বেশির ভাগ উপজেলা ভূমি অফিসগুলো জরাজীর্ণ ছিল। এখন সব জায়গায় আমরা নতুন অফিস করে দিচ্ছি। ১৩৯টি উপজেলা ভূমি অফিস নির্মাণের কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়, তার মধ্যে ১২৯টির নির্মাণকাজ সম্পন্ন হয়েছে। প্রত্যেকটি উপজেলার অফিসগুলোকে নতুনভাবে গড়ে তোলা। যেগুলো হয়নি, সেগুলো দ্রুত প্রকল্প নিয়ে কাজ সম্পন্ন করতে হবে। এখান থেকেও মানুষ যথাযথ সেবা পাবে।

‘আমাদের ভূমি অফিসগুলো বিভিন্ন জায়গায় ছড়ানো-ছিটানো ছিল। আমরা আস্তে আস্তে সব অফিসকে এক ভবনে আনছি। মানুষ যাতে সব সেবা এক জায়গায় পেতে পারে, সে ব্যবস্থাটা আমরা নিয়েছি।’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নটা পূরণ করতে হবে। তার জন্য সবচেয়ে বেশি দরকার মানুষের বাসস্থান, মানুষের অধিকার নিশ্চিত করা এবং মানুষের জীবনটাকে সুন্দর করে গড়ে তোলা। সে লক্ষ্য নিয়েই আমরা পদক্ষেপ নিই। তা ছাড়া আমরা দেখেছি শুধু আমাদের দেশই নয়, বিশ্বের সব দেশেই যখন নগরায়ণ শুরু হয়, তখন কিন্তু সেটা যদি সুপরিকল্পিতভাবে হয়, তাহলে কোনো অসুবিধা হয় না।

‘কিন্তু যখন এটা শুরু হয় তখন সেটা পরিকল্পনা মাফিক হয় না। কাজেই নগরায়ণের চাপে একদিকে আমরা যেমন কৃষিজমি হারাই, অন্যদিকে বনায়ন ধ্বংস হয়, পরিবেশ নষ্ট হয়। এটা খুব একটা স্বাভাবিক নিয়মই ছিল। কিন্তু আমরা সরকারে আসার পর থেকে আমাদের প্রচেষ্টাই ছিল ভূমির ব্যবহার, ভূমি উন্নয়ন এবং ভূমিকে যথাযথভাবে রক্ষা করা। যেমন কৃষিজমি রক্ষা করা, আবার মানুষের বসতিও সুন্দরভাবে গড়ে তোলা। প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে মানুষকে রক্ষা করা এসব বিষয় মাথায় রেখেই আমরা বিভিন্ন পদক্ষেপ নিই।’

তিনি বলেন, ‘ভূমি ব্যবহারের জন্য যে একটা নীতিমালা প্রয়োজন, আমাদের নির্বাচনি ইশতেহারেও এটা আমরা যুক্ত করেছিলাম। ২০০১ সালে আমরা সে ধরনের একটি নীতিমালা প্রণয়নও করি। ১৯৯৬ সালে আমরা যখন সরকার গঠন করি, তখনই আমরা কিছু পদক্ষেপ নিই।

‘২৮টি মৌলিক বিষয় এতে সংযোজন করি। একটি জাতীয় ভূমি ব্যবহার কমিটিও আমরা সে সময় গঠন করেছিলাম।’

অধিগ্রহণের জমি ব্যবহারে আর সমস্যা হবে না

দেশের সরকারি সব জমির তথ্যভান্ডার তৈরির ফলে এখন থেকে অধিগ্রহণ করা জমিতে প্রকল্প নিতে আর কোনো সমস্যা হবে না বলে আশা প্রকাশ করেছেন সরকারপ্রধান।

তিনি বলেন, ‘দেশের সায়রাত মহাল অর্থাৎ যেখানে জলাভূমি আছে সেগুলোর ডিজিটাল ডেটাবেজ ছিল না। এর জন্য এগুলোর তথ্য পেতে দীর্ঘ সময় লাগে। যেকোনো প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে গেলে সবচেয়ে বেশি সমস্যা হয় এই ভূমি নিয়ে।

‘কোথায় ভূমি পাওয়া যাবে, সেগুলোর মালিকানা খোঁজা, তারপর অর্থ পরিশোধ করা…অনেক ঝামেলা। ডিজিটাইজড হলে আর ডাটাবেজ থাকলে কোথায় কোন জমি আছে, কী অবস্থায় আছে, সেটা এই ভূমি তথ্য থেকে সব পাওয়া যাবে। এতে কাজগুলো করতে সুবিধা হবে। ভবিষ্যতে উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন আরও সহজতর হবে।’

সরকারপ্রধান বলেন, ‘আরেকটা সমস্যা ছিল, ডাটাবেজ না থাকার কারণে অনেক সময় অনেক দপ্তর বা সংস্থা তাদের কত জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে বা কোথায় আছে, তা জানতে পারত না।

‘ফলে আবার নতুন জমি অধিগ্রহণের জন্য…আর যেকোনো প্রকল্প হলে একটু নতুন জমি অধিগ্রহণের বিষয়ে অনেকের আবার আকাঙ্ক্ষাটাও বেশি থাকে। এ রকম একটি মানসিকতা আমি লক্ষ করি। কিন্তু এখন যেহেতু একটি ভূমি ব্যাংক হয়ে যাচ্ছে, এখন আর অধিগ্রহণকৃত জমি ব্যবহারে কোনো সমস্যা হবে না।’

তিনি বলেন, ‘নতুন পদ্ধতিতে রেকর্ডগুলো সুরক্ষিত থাকবে। হার্ড কপিও যেমন থাকবে, আবার ডিজিটাল পদ্ধতিতেও সফট কপি থাকবে। তথ্য পেতে আর কোনো অসুবিধা হবে না।

‘এই সেবা নিশ্চিত করতে ইউনিয়ন পর্যায়ে ১৪৯৮টি ভূমি অফিস নির্মাণের প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হচ্ছে। এর মধ্যে ৯৯৫টির নির্মাণকাজ সম্পন্ন হয়েছে। আশা করি বাকিগুলিও খুব দ্রুত শেষ হবে।’

আরও পড়ুন:
আমি শুধু শাসক নই, মানুষের সেবক: প্রধানমন্ত্রী
অক্টোবর থেকে মাসে দুই কোটি টিকা: প্রধানমন্ত্রী
‘যুদ্ধাপরাধীর স্বজনরা ষড়যন্ত্রে, জাতি সাবধান’
পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে গুলি চালাননি জিয়া: প্রধানমন্ত্রী

শেয়ার করুন

মন্তব্য

এমপি জাফরকে এলাকায় না থাকতে ইসির চিঠি

এমপি জাফরকে এলাকায় না থাকতে ইসির চিঠি

কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য জাফর আলম। ছবি: নিউজবাংলা

ইসির চিঠিতে বলা হয়, যেহেতু এমপি জাফর বিধি বহির্ভূতভাবে একজন প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে, তাই তাকে ভোটাধিকার প্রয়োগ ছাড়া কক্সবাজার-১-এর আওতাধীন নির্বাচনি এলাকায় অবস্থান করতে না দেয়ার বিষয়ে কমিশন সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

নির্বাচনি আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য জাফর আলমকে এলাকা ছাড়ার চিঠি দিয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

চিঠিতে তাকে ভোট দেয়া ছাড়া নির্বাচনি এলাকায় অবস্থান না করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

রোববার রাতে ইসির উপসচিব মো. আতিয়ার রহমানের স্বাক্ষরে চিঠিটি এমপি জাফর আলমের কাছে পাঠানো হয়।

নির্দেশনায় বলা হয়, এমপি জাফরের বিরুদ্ধে কক্সবাজার-১ আসনের আওতাধীন চকরিয়া পৌরসভা নির্বাচনে আচরণবিধি লঙ্ঘন করে প্রকাশ্যে এক প্রার্থীর পক্ষে কাজ করার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে পৌরসভা (নির্বাচন আচরণ) বিধিমালা ২০১৫-এর ২২ বিধি উল্লেখ করে চিঠিতে বলা হয়- সরকারি সুবিধাভোগী অতিগুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি এবং কোনো সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারী নির্বাচনি প্রচারে বা কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবেন না। তবে ভোটার হলে তিনি শুধু ভোট দিয়ে কেন্দ্রে যেতে পারবেন।

এ ছাড়া ভোটের আগে কোনো প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী বা তার পক্ষে অন্য কোনো ব্যক্তি, সংস্থা বা প্রতিষ্ঠান নির্বাচনি কাজে সরকারি প্রচারযন্ত্র, যানবাহন, অন্য কোনো সরকারি সুযোগ-সুবিধা ভোগ এবং সরকারি কর্মকর্তা বা কর্মচারীদের ব্যবহার করতে পারবেন না।

চিঠিতে আরও বলা হয়, যেহেতু এমপি জাফর বিধি বহির্ভূতভাবে একজন প্রার্থীর পক্ষে কাজ করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে, তাই তাকে ভোটাধিকার প্রয়োগ ছাড়া কক্সবাজার-১-এর আওতাধীন নির্বাচনি এলাকায় অবস্থান করতে না দেয়ার বিষয়ে কমিশন সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

কক্সবাজারের চকরিয়া পৌরসভায় সোমবার ভোট হবে। নির্বাচনি প্রচার শেষ হওয়ার পর ভোটের আগের রাতে এমপি জাফরকে এ চিঠি পাঠানো হলো।

আরও পড়ুন:
আমি শুধু শাসক নই, মানুষের সেবক: প্রধানমন্ত্রী
অক্টোবর থেকে মাসে দুই কোটি টিকা: প্রধানমন্ত্রী
‘যুদ্ধাপরাধীর স্বজনরা ষড়যন্ত্রে, জাতি সাবধান’
পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে গুলি চালাননি জিয়া: প্রধানমন্ত্রী

শেয়ার করুন

পাসপোর্ট ফেরত চেয়ে রোজিনার আবেদন খারিজ

পাসপোর্ট ফেরত চেয়ে রোজিনার আবেদন খারিজ

রোজিনা ইসলাম

পাসপোর্ট জমা দেয়ার শর্তে রোজিনা ইসলামকে জামিন দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এখন পাসপোর্ট ফেরত দেয়া হলে আগের সেই শর্ত ভঙ্গ হয়, বলেন বিচারক।

ব্যক্তিগত পাসপোর্ট, প্রেস এক্রিডিশন কার্ড ও দুটি মুঠোফোন ফেরত চেয়ে প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলামের আবেদন নাকচ করেছে আদালত। দণ্ডবিধি ও অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টের মামলায় এসব মাল জব্দ করেছিল পুলিশ।

রোববার ঢাকার অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর হাকিম আবু বক্কর ছিদ্দিক আবেদনটি নাকচ করে দেন।

গত ১৭ মে পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে রোজিনা ইসলামকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে প্রায় ছয় ঘণ্টা আটকে রেখে রাত সাড়ে আটটার দিকে শাহবাগ থানায় হস্তান্তর ও তার বিরুদ্ধে মামলা করা হয়।

সেই মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানোর পর গত ২৩ মে তিনি জামিনে বেরিয়ে আসেন।

শাহবাগ থানার উপপরিদর্শক নিজাম উদ্দিন নিউজবাংলাকে জানান, গত ১৫ সেপ্টেম্বর এই মামলার তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার তারিখ ঠিক করা ছিল। এদিন আদালতে হাজির হয়ে জব্দকৃত মালামাল ফেরত চেয়ে আইনজীবী এহসানুল হক সমাজীর মাধ্যমে আবেদন করেন রোজিনা।

শুনানিতে সেদিন মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা ডিবি পুলিশের পরিদর্শক মোহাম্মদ মোর্শেদ হোসেন খানকে ১৯ সেপ্টেম্বর অর্থাৎ রোববার আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দেন বিচারক। নির্দেশনা অনুযায়ী নির্দিষ্ট দিনে তদন্ত কর্মকর্তা হাজির হন।

রোজিনার আইনজীবী এহসানুল হক সমাজী আদালতকে বলেন, ‘রোজিনা ইসলামের পাসপোর্টটি জব্দ করা হয়েছিল। তিনি শারীরিক নানা জটিলতায় ভুগছেন। প্রেস এক্রিডিশন কার্ডটিও জব্দ রয়েছে। জব্দ রয়েছে তার দুটি মুঠোফোন। এসব জব্দ থাকার ফলে তিনি তার পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে পারছেন না।’

এ সময় আদালতে উপস্থিত তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোর্শেদ খান আদালতকে বলেন, ‘তদন্তের স্বার্থে জব্দ করা রোজিনা ইসলামের দুটি মুঠোফোনের ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে এবং ইতোমধ্যে রিপোর্টও এসেছে।

‘তাই তার জিনিসপত্র এখনই ফেরত না দেয়ার জন্য বিনীত আবেদন করছি।’

এ সময় বিচারক রোজিনা ইসলামের আইনজীবীর উদ্দেশে বলেন, ‘পাসপোর্ট জমা দেয়ার শর্তে রোজিনা ইসলামকে জামিন দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এখন পাসপোর্ট ফেরত দেয়া হলে আগের সেই শর্ত ভঙ্গ হয়।’

তখন রোজিনার আইনজীবী বলেন, ‘আদালত রোজিনা ইসলামের পাসপোর্ট জমা নিয়েছে। কিন্তু রোজিনা ইসলাম কোথাও যেতে পারবেন না, এমন কোনো শর্ত আদেশে দেয়া হয় নাই।’

আদালত উভয় পক্ষের শুনানি শেষে রোজিনা ইসলামের করা আবেদনটি খারিজ করে দেয়।

তবে সিএমএম আদালতের নাকচ আদেশের বিরুদ্ধে ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে আবেদন করা হবে বলে নিউজবাংলাকে নিশ্চিত করেন আইনজীবী এহসানুল হক সমাজী।

আরও পড়ুন:
আমি শুধু শাসক নই, মানুষের সেবক: প্রধানমন্ত্রী
অক্টোবর থেকে মাসে দুই কোটি টিকা: প্রধানমন্ত্রী
‘যুদ্ধাপরাধীর স্বজনরা ষড়যন্ত্রে, জাতি সাবধান’
পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে গুলি চালাননি জিয়া: প্রধানমন্ত্রী

শেয়ার করুন

৩ মাস পর বাংলাদেশের জন্য খুলছে জাপানের দুয়ার

৩ মাস পর বাংলাদেশের জন্য খুলছে জাপানের দুয়ার

নতুন নিয়ম অনুযায়ী জাপানে পৌঁছানোর পর এবং কোয়ারেন্টিনের তৃতীয় দিনে ভ্রমণকারীদের করোনা পরীক্ষা করাতে হবে। ছবি: জাপান টাইমস

ছয়টি দেশের ওপর থেকে এসব বিধিনিষেধ প্রত্যাহারে শুক্রবার সিদ্ধান্ত নেয় টোকিও। জাপানের করোনাকালীন কোয়ারেন্টিন নীতিমালায় এর ফলে বড় ধরনের সংস্কার এলো। পরিবর্তিত নীতি অনুযায়ী ৪০টির বেশি দেশ ও অঞ্চলের ভ্রমণেচ্ছুদের জাপানে পৌঁছানোর পর সরকারি ব্যবস্থায় কমপক্ষে তিন দিন কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

করোনাভাইরাস মহামারিকালীন বিধিনিষেধের অংশ হিসেবে বাংলাদেশসহ ছয়টি দেশের ওপর জারিকৃত ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করেছে জাপান। সোমবার থেকে এসব দেশের নাগরিকরা জাপানে ঢুকতে পারবেন।

জাপান টাইমসের শনিবারের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাসের অধিক সংক্রামক ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের কারণে চলতি বছরের জুনে ছয়টি দেশকে কালো তালিকাভুক্ত করেছিল টোকিও। গত প্রায় তিন মাস এসব দেশের নাগরিকদের জন্য জাপান ভ্রমণ প্রায় পুরোপুরি নিষিদ্ধ ছিল।

দেশগুলো হলো বাংলাদেশ, ভারত, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ ও আফগানিস্তান। করোনাভাইরাসের টিকা নেয়া কিংবা জাপানে বসবাসের বৈধ অনুমতি থাকা ব্যক্তিদেরও এসব দেশ থেকে জাপানে ঢুকতে দেয়া হচ্ছিল না।

এমনকি এসব দেশ থেকে জাপানগামী বিশ্বের সব দেশের নাগরিকদের জন্য পৌঁছানোর পরের ১৪ দিন কোয়ারেন্টিন বাধ্যতামূলক করা হয়।

ছয়টি দেশের ওপর থেকে এসব বিধিনিষেধ প্রত্যাহারে শুক্রবার সিদ্ধান্ত নেয় টোকিও। জাপানের করোনাকালীন কোয়ারেন্টিন নীতিমালায় এর ফলে বড় ধরনের সংস্কার এলো। পরিবর্তিত নীতি অনুযায়ী ৪০টির বেশি দেশ ও অঞ্চলের ভ্রমণেচ্ছুদের জাপানে পৌঁছানোর পর সরকারি ব্যবস্থায় কমপক্ষে তিন দিন কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে।

করোনাভাইরাস ও এর ভ্যারিয়েন্টের বিস্তার রোধে এ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এর আওতায় জাপানে পৌঁছানোর পর এবং কোয়ারেন্টিনের তৃতীয় দিনে ভ্রমণকারীদের করোনা পরীক্ষা করাতে হবে।

দুটি টেস্টে নেগেটিভ হলেই সেলফ-আইসোলেশন থেকে বেরিয়ে জাপানে নিজ বাড়িতে অথবা নিজেদের পছন্দ অনুযায়ী স্থানে বাকি ১১ দিনের কোয়ারেন্টিন সম্পন্ন করতে হবে। তারপর জাপানে উন্মুক্ত চলাচলের সুযোগ পাবেন তারা।

বাংলাদেশ ছাড়াও ৪০টি দেশের নতুন তালিকায় আছে ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, মিয়ানমার, শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপ, আফগানিস্তান, মালয়েশিয়া, ইন্দোনেশিয়া, ফিলিপাইনসহ বিভিন্ন দেশ।

আরও পড়ুন:
আমি শুধু শাসক নই, মানুষের সেবক: প্রধানমন্ত্রী
অক্টোবর থেকে মাসে দুই কোটি টিকা: প্রধানমন্ত্রী
‘যুদ্ধাপরাধীর স্বজনরা ষড়যন্ত্রে, জাতি সাবধান’
পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে গুলি চালাননি জিয়া: প্রধানমন্ত্রী

শেয়ার করুন

অ্যাসিড ছুড়ে, ঘাড় মটকে ভাইকে হত্যা

অ্যাসিড ছুড়ে, ঘাড় মটকে ভাইকে হত্যা

স্বপনকে হত্যার ঘটনায় তার ছোট ভাইসহ গ্রেপ্তার তিন আসামি। ছবি: নিউজবাংলা

পিবিআই বলছে, গত ২৬ জুলাই রাতে স্বপন মিয়াকে হত্যা করে তারই ছোট ভাই রিপন মিয়া ও তার সঙ্গীরা। ২৮ জুলাই স্বপনের লাশ উদ্ধার হয়। পরের দিন ভৈবর থানায় মামলা করেন রিপন। মামলার তদন্তভার পায় পিবিআই।

পারিবারিক জমিজমা নিয়ে বিরোধ ও মাদক সেবনে বাধা দেয়ার বড় ভাইকে নৃশংসভাবে হত্যার অভিযোগ উঠেছে ছোট ভাইয়ের বিরুদ্ধে। হত্যার দায় অন্যের ওপর চাপাতে ছোট ভাই হন মামলার বাদী। তবে পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) তদন্ত বলছে, বাদী রিপন মিয়া বড় ভাই স্বপন মিয়াকে হত্যা করেছেন।

হত্যার ঘটনাটি ঘটেছে কিশোরগঞ্জের ভৈরবে।

সংস্থাটির তদন্ত প্রতিবেদন বলছে, গত ২৬ জুলাই রাতে স্বপন মিয়াকে হত্যা করে তারই ছোট ভাই রিপন মিয়া ও তার সঙ্গীরা। ২৮ জুলাই স্বপনের লাশ উদ্ধার হয়। পরের দিন ভৈবর থানায় মামলা করেন রিপন। মামলার তদন্তভার পায় পিবিআই।

পিবিআই-এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু ইউছুফ জানান, স্বপনকে হত্যার পর রিপন বাদী হয়ে ৩ জনকে সন্দেহভাজন আসামি উল্লেখ করে মামলা করেন।

পিবিআই জানায়, রিপন নিজে উপস্থিত থেকে অন্য আসামিদের সঙ্গে নিয়ে প্রথমে বড় ভাইকে প্রথমে অ্যাসিড মারেন। শরীর ঝলসে গেলে স্বপন দৌড়ে গিয়ে বিলের পানিতে নামেন। তখন রিপনসহ অন্য আসামিরা স্বপ্নকে পানির নিচে চেপে ধরেন। মৃত্যু নিশ্চিত করতে তার ঘাড় মটকে দেন রিপন।

আবু ইউছুফ জানান, স্বপন মিয়ারা ৪ ভাই ও ১ বোন। ভাইদের মধ্যে স্বপন স্থানীয় বাজারে চা বিক্রেতা। রিপন ২-৩ বছর আগে মালয়েশিয়া থেকে দেশে আসেন। ফিরে মাছের খামারসহ কৃষি জমি আবাদ করতেন তিনি।

প্রাথমিক তদন্ত শেষে কিশোরগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার (পিবিআই) শাহাদাত হোসেনের নেতৃত্বে ১৭ সেপ্টেম্বর রিপন মিয়া, আব্দুর রব, ইমান আলী, সবুজকে গ্রেপ্তার করা হয়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে রিপন তার ভাইকে হত্যার কথা স্বীকার করেন। শুক্রবার কিশোরগঞ্জের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন তিনি।

পিবিআই জানায়, রিপন নিয়মিত তার বন্ধুদের সঙ্গে ইয়াবা ও গাঁজা সেবন করতেন। স্বপনের সঙ্গে তার পৈতৃক জমিজমা বণ্টন নিয়ে বিরোধ ছিল। রিপনকে মাদক সেবন ছাড়াতে বাধা দিতেন। এসব কারণে স্বপনকে মেরে প্রতিশোধ নিতে হত্যার পরিকল্পনা করেন।

হত্যার পর আসামিরা মিলে স্বপনের লাশ ঘটনাস্থল থেকে ৫০-৬০ গজ দূরে নিয়ে একটি কালভার্টের নিচে রেখে আসেন। সেখান থেকেই দুদিন পর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

জিজ্ঞাসাবাদে রিপন জানায়, স্বপনকে হত্যার পরিকল্পনা করার সময় আসামি সবুজকে পাঁচ হাজার টাকা দেন রিপন। এ ছাড়া ‘অপারেশন সফল’ হলে প্রত্যেক আসামিকে খুশি করে দেয়ার কথা বলেন তিনি।

আরও পড়ুন:
আমি শুধু শাসক নই, মানুষের সেবক: প্রধানমন্ত্রী
অক্টোবর থেকে মাসে দুই কোটি টিকা: প্রধানমন্ত্রী
‘যুদ্ধাপরাধীর স্বজনরা ষড়যন্ত্রে, জাতি সাবধান’
পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে গুলি চালাননি জিয়া: প্রধানমন্ত্রী

শেয়ার করুন

দুর্নীতিবাজদের শাস্তি নিশ্চিতে দুদকের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান

দুর্নীতিবাজদের শাস্তি নিশ্চিতে দুদকের প্রতি রাষ্ট্রপতির আহ্বান

রোববার সন্ধ্যায় দুদক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ এবং কমিশনার মো. জহুরুল হক বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদের সঙ্গে সাক্ষাত করেন। ছবি: নিউজবাংলা

বাংলাদেশ উন্নয়ন ও অগ্রগতির পথে এগিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, ‘উন্নয়নের এ ধারাকে টেকসই করতে দুর্নীতি প্রতিরোধ খুবই প্রয়োজন।’

দুর্নীতিবাজদের শাস্তি নিশ্চিত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ।

দুদক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনউদ্দীন আবদুল্লাহ এবং কমিশনার মো. জহুরুল হক রোববার সন্ধ্যায় বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তিনি এ আহ্বান জানান।

সাক্ষাতকালে দুদক চেয়ারম্যান কমিশনের সার্বিক কর্মকাণ্ড সম্পর্কে রাষ্ট্রপতিকে অবহিত করেন।

বাংলাদেশ উন্নয়ন ও অগ্রগতির পথে এগিয়ে যাচ্ছে উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেন, ‘উন্নয়নের এ ধারাকে টেকসই করতে দুর্নীতি প্রতিরোধ খুবই প্রয়োজন।’

তিনি বলেন, ‘তরুণ প্রজন্ম যাতে দুর্নীতি বিরোধী মনোভাব নিয়ে বেড়ে উঠতে পারে সে লক্ষ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান, সমাজ ও পরিবার থেকে উদ্যোগ নিতে হবে।’

প্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতি প্রতিরোধের পাশাপাশি অপ্রাতিষ্ঠানিক দুর্নীতি প্রতিরোধেও দুদক কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে বলে আশা রাষ্ট্রপতির।

রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব সম্পদ বড়ুয়া, সামরিক সচিব মেজর জেনারেল এস এম সালাহ উদ্দিন ইসলাম এবং সচিব সংযুক্ত মো. ওয়াহিদুল ইসলাম খান এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
আমি শুধু শাসক নই, মানুষের সেবক: প্রধানমন্ত্রী
অক্টোবর থেকে মাসে দুই কোটি টিকা: প্রধানমন্ত্রী
‘যুদ্ধাপরাধীর স্বজনরা ষড়যন্ত্রে, জাতি সাবধান’
পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে গুলি চালাননি জিয়া: প্রধানমন্ত্রী

শেয়ার করুন

অটোপাস হলেও ফাইনাল দিতে হবে প্রথম বর্ষকে

অটোপাস হলেও ফাইনাল দিতে হবে প্রথম বর্ষকে

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের লগো

কেউ যদি এই পরীক্ষায় অংশ না নেয় বা পরীক্ষায় অংশ নিয়ে রেগুলেশন অনুযায়ী ‘নট প্রমোটেড’ হয় সে ক্ষেত্রে তার শর্ত সাপেক্ষে দেয়া প্রমোশন বা অটোপাস বাতিল গণ্য হবে।

অটোপাস হলেও প্রথম বর্ষের ফাইনাল দিতেই হবে শর্ত সাপেক্ষে দ্বিতীয় বর্ষে প্রমোশন পাওয়া জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের। আগামী নভেম্বরে এই ফাইনাল পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

রোববার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বদরুজ্জামানের সই করা এক অফিস আদেশ থেকে এ তথ্য জানা যায়।

আদেশে জানানো হয়, ২০২০ সালের অনার্স প্রথম বর্ষের পরীক্ষায় অংশ নিতে যেসব শিক্ষার্থী আবেদন ফরম পূরণ করেছে, করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধির কারণে যথাসময়ে তাদের পরীক্ষা গ্রহণ করা সম্ভব হয়নি। ইতিমধ্যে এসব পরীক্ষার্থীকে অনার্স দ্বিতীয় বর্ষে শর্ত সাপেক্ষে প্রমোশন দেয়া হয়েছে। করোনা পরিস্থিতি খারাপের দিকে না গেলে ২০২০ সালের অনার্স প্রথম বর্ষের পরীক্ষা আগামী নভেম্বর মাসে অনুষ্ঠিত হবে।

বলা হয়, এই পরীক্ষার বিস্তারিত সময়সূচি যথাসময়ে প্রকাশ করা হবে।

এর আগে গত ১৬ জুন ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীদের শর্ত সাপেক্ষে দ্বিতীয় বর্ষে প্রমোশন দেয় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়। এর আওতায় ওই শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হওয়া ৩ লাখ ১৬ হাজার ৬৭৬ শিক্ষার্থীকে দ্বিতীয় বর্ষে প্রমোশন দিয়ে ক্লাস করার অনুমতি দেয়া হয়।

২০২০ সালে অনার্স প্রথম বর্ষ পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য ফরম পূরণ করেন ৪ লাখ ৬৭ হাজার ৮৩৫ শিক্ষার্থী। এদের মধ্যে নিয়মিত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২ লাখ ৯৭ হাজার ৬২৬, অনিয়মিত শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১৯ হাজার ৫০। আর মানোন্নয়ন পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ১ লাখ ৫১ হাজার ১৫৯। ২০১৯-২০২০ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হয়েছিলেন ৩ লাখ ৭৩ হাজার ৮৭৬ শিক্ষার্থী।

প্রমোশন পাওয়ার শর্তগুলোর মধ্যে অন্যতম প্রধান শর্ত ছিল, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে এসব শিক্ষার্থীকে অবশ্যই প্রথম বর্ষের লিখিত পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে হবে। কেউ যদি এই পরীক্ষায় অংশ না নেয় বা পরীক্ষায় অংশ নিয়ে রেগুলেশন অনুযায়ী ‘নট প্রমোটেড’ হয় সে ক্ষেত্রে তার শর্ত সাপেক্ষে দেয়া প্রমোশন বা অটোপাস বাতিল গণ্য হবে।

আরও পড়ুন:
আমি শুধু শাসক নই, মানুষের সেবক: প্রধানমন্ত্রী
অক্টোবর থেকে মাসে দুই কোটি টিকা: প্রধানমন্ত্রী
‘যুদ্ধাপরাধীর স্বজনরা ষড়যন্ত্রে, জাতি সাবধান’
পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে গুলি চালাননি জিয়া: প্রধানমন্ত্রী

শেয়ার করুন

নিউ ইয়র্কের পথে প্রধানমন্ত্রী

নিউ ইয়র্কের পথে প্রধানমন্ত্রী

হেলসিংকির ভানতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান ফিনল্যান্ডে বাংলাদেশের অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত নাজমুল ইসলাম। ফাইল ছবি

ফিনল্যান্ডের হেলসিংকিতে যাত্রাবিরতি শেষে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের পথে রওনা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। হেলসিংকির ভানতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বাংলাদেশ বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইটে সফরসঙ্গীদের নিয়ে যাত্রা করেন প্রধানমন্ত্রী। বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিদায় জানান ফিনল্যান্ডে অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত হিসেবে কর্মরত নাজমুল ইসলাম।

জাতিসংঘের ৭৬তম অধিবেশনে যোগ দিতে ফিনল্যান্ডের হেলসিংকিতে যাত্রাবিরতি শেষে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কের পথে রওনা হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

দেশটির স্থানীয় সময় বিকেল ৪টা ১৬ মিনিটের দিকে হেলসিংকির ভানতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে বাংলাদেশ বিমানের একটি বিশেষ ফ্লাইটে সফরসঙ্গীদের নিয়ে যাত্রা করেন প্রধানমন্ত্রী।

বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে বিদায় জানাতে আসেন ফিনল্যান্ডে অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত হিসেবে কর্মরত নাজমুল ইসলাম।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইংয়ের উপ-প্রেসসচিব হাসান জাহিদ তুষার।

যুক্তরাষ্ট্রের স্থানীয় সময় সন্ধ্যা ৬টার দিকে জন এফ কেনেডি বিমানবন্দরে পৌঁছানোর কথা তার। সেখানে বিমানবন্দরের আনুষ্ঠানিকতা শেষে প্রধানমন্ত্রী সফরকালীন আবাসস্থল লোটে নিউ ইয়র্ক প্যালেসে যাবেন।

২০ সেপ্টেম্বর নিউ ইয়র্ক সময় সকাল ৯টায় রাষ্ট্র ও সরকারপ্রধানদের অংশগ্রহণে জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক রুদ্ধদ্বার বৈঠকে অংশ নেবেন তিনি।

বেলা সাড়ে ১১টায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে জাতিসংঘ সদর দপ্তরের উত্তরের লনে বাগানে বৃক্ষরোপণ এবং একটি বেঞ্চ উৎসর্গ করবেন প্রধানমন্ত্রী।

এদিন দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার সফরকালীন আবাসস্থলে ইউরোপিয়ান কাউন্সিলের সভাপতি চার্লস মিশেলের সঙ্গে বৈঠক করবেন।

বেলা পৌনে ৩টায় একই স্থানে বার্বাডোসের প্রধানমন্ত্রী মিয়া আমোর মোটলির সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি।

বিকেল ৪টায় সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট সল্যুশন নেটওয়ার্ক শীর্ষক অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করার কথা রয়েছে তার।

২১ সেপ্টেম্বর সকাল ৯টায় জাতিসংঘ সদর দপ্তরের জেনারেল অ্যাসেম্বলি হলে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৬তম অধিবেশনের উদ্বোধনী পর্বে অংশগ্রহণ করবেন শেখ হাসিনা।

এদিন বিকেলে সফরকালীন আবাসস্থলে যুক্তরাষ্ট্র-বাংলাদেশ বিজনেস কাউন্সিলের গোলটেবিল বৈঠকে অংশ নেবেন তিনি।

২২ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সময় বেলা ১১টায় সফরকালীন আবাসস্থল থেকে ‘হোয়াইট হাউস গ্লোবাল কোভিড-১৯ সামিট: ইন্ডিং দ্য প্যানডেমিক অ্যান্ড বিল্ডিং ব্যাক বেটার’ শীর্ষক ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন শেখ হাসিনা।

দুপুর ১২টার দিকে নেদারল্যান্ডসের রানি ম্যাক্সিমার সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি। বিকেলে ‘রোহিঙ্গা সংকট: টেকসই সমাধান অত্যাবশ্যক’ শীর্ষক উচ্চপর্যায়ের অনুষ্ঠানে (ভার্চুয়াল) অংশগ্রহণ করবেন প্রধানমন্ত্রী।

২৩ সেপ্টেম্বর সকাল ৮টায় ‘ইভেন্ট অব লিডারস নেটওয়ার্ক অন ডেলিভারিং অন দ্য ইউএন কমন এজেন্ডা: অ্যাকশন টু অ্যাচিভ ইকুয়্যালিটি অ্যান্ড কনক্লুশন’ শীর্ষক আয়োজনে অংশ নেবেন শেখ হাসিনা।

বেলা ১টায় জাতিসংঘ মহাসচিবের সভাপতিত্বে ‘ফুড সিস্টেমস সামিট অ্যাজ পার্ট অব দ্য ডিকেড অব অ্যাকশন টু অ্যাচিভ দ্য সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট গোল (এসডিজিএস) বাই ২০৩০’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে ভিডিও বার্তায় বক্তব্য রাখবেন প্রধানমন্ত্রী।

এদিন দুপুরে জাতিসংঘ সদর দপ্তরে পর্যায়ক্রমে মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম মোহামেদ সলিহ, জাতিসংঘের মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস এবং ভিয়েতনামের প্রেসিডেন্ট নগুইয়েন জুয়ান ফুকের সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি।

২৪ সেপ্টেম্বর স্থানীয় সময় সকালে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৬তম অধিবেশনে বক্তব্য দেবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এদিন দুপুরে নেদারল্যান্ডসের প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুটের সঙ্গে বৈঠক করবেন তিনি।

রাত ৮টায় যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী বাংলাদেশি কমিউনিটি আয়োজিত নাগরিক সংবর্ধনায় ভার্চুয়ালি অংশ নেবেন সরকারপ্রধান।

২৫ সেপ্টেম্বর সকালে নিউ ইয়র্ক থেকে ওয়াশিংটন যাবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ২৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থান করবেন তিনি।

৩০ সেপ্টেম্বর বিকেল ৫টায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ভিভিআইপি ফ্লাইট বিজি-১৯০৪যোগে ফিনল্যান্ডের হেলসিংকির উদ্দেশে ওয়াশিংটন ছাড়বেন প্রধানমন্ত্রী।

১ অক্টোবর সকাল পৌনে ৮টায় হেলসিংকির ভানতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছাবেন প্রধানমন্ত্রী। পৌনে ১০টায় বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের বিজি-১৯০৫ ফ্লাইটে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হবেন তিনি।

১ অক্টোবর রাত সোয়া ১০টায় দেশে পৌঁছানোর কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর।

এর আগে শুক্রবার সকাল ৯টা ২৩ মিনিটে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইনসের ভিভিআইপি ফ্লাইটে নিউ ইয়র্কের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়েন তিনি।

করোনা মহামারি শুরুর টানা ১৯ মাস পর প্রথম বিদেশ সফরে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী। যুক্তরাষ্ট্র সফরে আসা-যাওয়ার পথে ফিনল্যান্ডে অবস্থান করবেন তিনি।

শুক্রবার ফিনল্যান্ডের স্থানীয় সময় বেলা ৩টা ৩৭ মিনিটে প্রধানমন্ত্রীকে বহনকারী বাংলাদেশ বিমানের বিশেষ ফ্লাইট হেলসিংকির ভানতা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে।

বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রীকে স্বাগত জানান দেশটিতে অনাবাসিক রাষ্ট্রদূত হিসেবে কর্মরত নাজমুল ইসলাম। হেলসিংকির হোটেল ক্যাম্পে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

আরও পড়ুন:
আমি শুধু শাসক নই, মানুষের সেবক: প্রধানমন্ত্রী
অক্টোবর থেকে মাসে দুই কোটি টিকা: প্রধানমন্ত্রী
‘যুদ্ধাপরাধীর স্বজনরা ষড়যন্ত্রে, জাতি সাবধান’
পাকিস্তানিদের বিরুদ্ধে গুলি চালাননি জিয়া: প্রধানমন্ত্রী

শেয়ার করুন