ফুঁসে উঠছে যমুনা

ফুঁসে উঠছে যমুনা

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘যমুনার পানি বিপৎসীমার ৬৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় জেলার অনেক স্থানেই বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। ভাঙন প্রতিরোধে বিভিন্ন স্থানে জরুরি ভিত্তিতে জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে। যমুনা নদীর পানি আরও বাড়তে পারে বলে সতর্ক করেছে বন্যা পূর্বাভাস সতর্কীকরণ কেন্দ্র।’

উজানের ঢলে যমুনা নদীর পানি বেড়ে সিরাজগঞ্জের ৫ উপজেলার ২৮টি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়েছে লক্ষাধিক মানুষ।

সিরাজগঞ্জ পয়েন্টে গত ২৪ ঘণ্টায় যমুনা নদীর পানি ৯ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপৎসীমার ৬৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। যুমনায় পানি বৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় প্রতিদিনই জেলার নদীতীরবর্তী নিম্নাঞ্চলসহ নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হচ্ছে।

যুমনায় পানি বৃদ্ধির পাশাপাশি চৌহালী উপজেলার এনায়েতপুরে শুরু হয়েছে তীব্র নদীভাঙন। ডুবে গেছে এসব অঞ্চলের শত শত একর ফসলি জমি।

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, ‘যমুনার পানি বিপৎসীমার ৬৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় জেলার অনেক স্থানেই বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হয়েছে। ভাঙন প্রতিরোধে বিভিন্ন স্থানে জরুরি ভিত্তিতে জিও ব্যাগ ফেলা হচ্ছে। যমুনা নদীর পানি আরও বাড়তে পারে বলে সতর্ক করেছে বন্যা পূর্বাভাস সতর্কীকরণ কেন্দ্র।’

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা আব্দুর রহিম নিউজবাংলাকে জানান, সিরাজগঞ্জ সদর, কাজিপুর, বেলকুচি, শাহজাদপুর ও চৌহালী উপজেলায় ২৮টি ইউনিয়নের শতাধিক গ্রামের মানুষ পানিবন্দি।

ফুঁসে উঠছে যমুনা

এরই মধ্যে বন্যার্তদের জন্য ১৩৯টি আশ্রয়কেন্দ্র খুলে দেয়া হয়েছে। পাঁচ উপজেলায় ১২৫ টন ক্ষয়রাতি চাল এবং পাঁচ লাখ টাকা সাহায্য দেয়া হয়েছে। এখন পর্যন্ত বন্যাকবলিত এলাকার ৪১২টি বাড়িঘর আংশিক ও পুরোপুরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে জানা গেছে।

এনায়েতপুর আরকান্দির চর গ্রামের মকবুল হোসেন জানান, নদীতে পানি আসার সঙ্গে সঙ্গে মাঠের সব ফসল তলিয়ে গেছে। এতে নষ্ট হয়ে গেছে ভুট্টা, মাষকালাই আর বাদামের ক্ষেত।

এ এলাকায় এখনো কোনো ত্রাণ সহায়তা আসেনি বলেও অভিযোগ করেন মকবুল হোসেন।

শাহজাদপুর হাট পাচিল গ্রামের ইদ্দিস প্রামাণিক বলেন, ‘বন্যার পাশাপাশি এই অঞ্চলে তীব্র নদীভাঙন শুরু হয়েছে। গত সাত দিনে নদীভাঙনের এ এলাকার বাড়িঘর, ফসলি জমিসহ চারটি মসজিদ ভেঙে গেছে। এখন নামাজ পড়ার মতো আর কোনো ঘর নেই।’

তিনি আরও জানান, ভাঙন আতঙ্কে দিন পার করছেন ছয় থেকে সাত গ্রামের মানুষ। ভাঙনের কবল থেকে বাঁচতে তারা ঘরবাড়ি অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার চেষ্টা করছেন।

আরও পড়ুন:
পদ্মার পানিতে বন্দি ৬৭ গ্রাম
৩ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর, টাঙ্গাইলে বন্যার অবনতি
জামালপুরের ১৩ ইউনিয়নে পানিবন্দি হাজারো মানুষ
৫ দিন ধরে বিপৎসীমার ওপরে যমুনা
যমুনার পানি বাড়ল আরও ২ সেন্টিমিটার

শেয়ার করুন

মন্তব্য

গ্রামের বাড়ি বেড়াতে গিয়ে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

গ্রামের বাড়ি বেড়াতে গিয়ে পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

কর্ণসূতি গ্রামের মোড়ল শামিম আহম্মেদ জানান, জান্নাতুল ও প্রতিবেশী মিথিলা বাড়ির পাশে খালে ভেলায় করে খেলছিল। এক পর্যায়ে তারা দুইজনই খালের পানিতে পড়ে যায়। পরে দুইজনকে হাসপাতালে নেয়া হলে জান্নাতুলকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক।

সিরাজগঞ্জের কামারখন্দে পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরেক শিশু।

উপজেলার কর্ণসূতি গ্রামে সোমবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে।

৫ বছর বয়সী জান্নাতুল খাতুন ওই গ্রামের নুরুল ইসলামের মেয়ে।

এ ঘটনায় মিথিলা নামে আরেক শিশুকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

কর্ণসূতি গ্রামের মোড়ল শামিম আহম্মেদ জানান, গত কয়েক দিন আগে ঢাকা থেকে শিশু জান্নাতুল তাদের গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে আসে। জান্নাতুল ও প্রতিবেশী মিথিলা বাড়ির পাশে খালে ভেলায় করে খেলছিল।

এক পর্যায়ে তারা দুইজনই খালের পানিতে পড়ে যায়। মিথিলা ছটফট করতে থাকলে স্থানীয়রা দেখতে পেয়ে তাকে উদ্ধার করে।

মোড়ল শামিম আরও জানান, বাড়ির আশে পাশে কোথাও জান্নাতুলকে না পেয়ে খালে খুঁজতে থাকে। এক পর্যায়ে জাল দিয়ে খুঁজতে খুঁজতে পানির নিচ থেকে জান্নাতুলকে উদ্ধার করে।

পরে দুইজনকে হাসপাতালে নেয়া হলে জান্নাতুলকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। আহত মিথিলা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

আরও পড়ুন:
পদ্মার পানিতে বন্দি ৬৭ গ্রাম
৩ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর, টাঙ্গাইলে বন্যার অবনতি
জামালপুরের ১৩ ইউনিয়নে পানিবন্দি হাজারো মানুষ
৫ দিন ধরে বিপৎসীমার ওপরে যমুনা
যমুনার পানি বাড়ল আরও ২ সেন্টিমিটার

শেয়ার করুন

১৬ কেজির কাতল বিক্রি ২৩৭০০ টাকায়

১৬ কেজির কাতল বিক্রি ২৩৭০০ টাকায়

সাগর হালদারের জালে ১৬ কেজি ওজনের কাতল মাছটি ধরা পড়ে। ছবি: নিউজবাংলা

মাছ ব্যবসায়ী শাজাহান শেখ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জেলে সাগর হালদার মাছটি দুপুরে বিক্রির জন্য আনলে আমি মাছটি কিনে নিই। পরে ঢাকার এক ব্যবসায়ীর কাছে মাছটি দেড় হাজার টাকা কেজি দরে বিক্রি করি।’

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দে পদ্মা নদীতে প্রায় ১৬ কেজি ওজনের একটি কাতল মাছ ধরা পড়েছে।

দৌলতদিয়া ফেরিঘাটের কাছে পদ্মা নদী থেকে সোমবার দুপুর ১টার দিকে জেলে সাগর হালদারের জালে মাছটি ধরা পড়ে।

তিনি জানান, দুপুর ১টার দিকে ১৫ কেজি ৮০০ গ্রামের মাছটি পেয়ে বিক্রির জন্য দৌলতদিয়া বাইপাস সড়কে শাকিল সোহান মৎস্য আড়তে নিয়ে আসেন। আড়ত মালিক শাজাহান শেখ মাছটি ১ হাজার ৪৫০ টাকা কেজি দরে কিনে নেন।

পরে মাছ ব্যবসায়ী শাজাহান শেখ মোবাইলের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন স্থানে যোগাযোগ করে ঢাকায় ১ হাজার ৫০০ টাকা কেজি দরে ২৩ হাজার ৭০০ টাকায় মাছটি বিক্রি করেন।

মাছ ব্যবসায়ী শাজাহান শেখ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘জেলে সাগর হালদার মাছটি দুপুরে বিক্রির জন্য আনলে আমি মাছটি কিনে নিই। পরে ঢাকার এক ব্যবসায়ীর কাছে মাছটি দেড় হাজার টাকা কেজি দরে বিক্রি করি।’

আরও পড়ুন:
পদ্মার পানিতে বন্দি ৬৭ গ্রাম
৩ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর, টাঙ্গাইলে বন্যার অবনতি
জামালপুরের ১৩ ইউনিয়নে পানিবন্দি হাজারো মানুষ
৫ দিন ধরে বিপৎসীমার ওপরে যমুনা
যমুনার পানি বাড়ল আরও ২ সেন্টিমিটার

শেয়ার করুন

নিজ বাড়ির সামনে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা

নিজ বাড়ির সামনে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় কৃষককে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। ছবি: নিউজবাংলা

লালমনিরহাট সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (বি-সার্কেল) তাপস সরকার নিউজবাংলাকে জানান, আব্দুল মালেক রোববার রাতে বাড়ির সামনে একটু অন্ধকারে একা বসে ছিলেন। এ সময় পেছন দিক থেকে দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় এক কৃষককে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

উপজেলার তিস্তা ব্যারাজের পাশে দোয়ানী এলাকায় নিজ বাড়ির সামনে রোববার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আব্দুল মালেকের বাড়ি গড্ডিমারী ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের দোয়ানী এলাকাতেই।

মালেকের পরিবারের দাবি জমিসংক্রান্ত মামলার জেরে তাকে হত‌্যা করা হয়েছে।

লালমনিরহাট সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (বি-সার্কেল) তাপস সরকার নিউজবাংলাকে জানান, আব্দুল মালেক রোববার রাতে বাড়ির সামনে একটু অন্ধকারে একা বসে ছিলেন। এ সময় পেছন দিক থেকে দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

হত্যার কারণ জানতে চাইলে পুলিশ সুপার জানান, মালেকের পরিবারের সঙ্গে কথা বলে তদন্ত করা হচ্ছে। এ ঘটনায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।

পাশাপাশি অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
পদ্মার পানিতে বন্দি ৬৭ গ্রাম
৩ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর, টাঙ্গাইলে বন্যার অবনতি
জামালপুরের ১৩ ইউনিয়নে পানিবন্দি হাজারো মানুষ
৫ দিন ধরে বিপৎসীমার ওপরে যমুনা
যমুনার পানি বাড়ল আরও ২ সেন্টিমিটার

শেয়ার করুন

বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে দুই শিশুসহ নিহত ৩

বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে দুই শিশুসহ নিহত ৩

হবিগঞ্জের মাধবপুরে বাসচাপায় অটোরিকশার তিনজন নিহত হয়েছেন। ছবি: নিউজবাংলা

শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ওসি মাইনুল ইসলাম জানান, অসুস্থ শিশু মোশারফকে নিয়ে একই পরিবারের তিনজন অটোরিকশায় করে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যাচ্ছিলেন। পথে অটোরিকশাটি আন্দিউড়া এলাকায় পৌঁছলে ঢাকা থেকে সিলেটগামী সাগরিকা বাসের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই শিশু মোশারফ ও জব্বার মিয়া মারা যান।

হবিগঞ্জের মাধবপুরে অসুস্থ ছেলেকে হাসপাতালে নেয়ার পথে বাবাসহ বাসচাপায় অটোরিকশার তিন যাত্রী নিহত হয়েছে। এ সময় আহত হয় আরও দুজন।

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে উপজেলার আন্দিউড়া এলাকায় উম্মেতুনেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে সোমবার দুপুর ১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাইনুল ইসলাম নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

নিহতরা হলো, ৩ বছর বয়সী শিশু মোশারফ মিয়া, ৮ বছর বয়সী রূপা আক্তার ও জব্বার মিয়া। তারা সবাই একই পরিবারের সদস্য।

আহত তিনজনের পরিচয় এখনও জানতে পারেনি পুলিশ।

শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাইনুল ইসলাম জানান, অসুস্থ শিশু মোশারফকে নিয়ে একই পরিবারের তিনজন অটোরিকশায় করে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যাচ্ছিলেন। পথে অটোরিকশাটি আন্দিউড়া এলাকায় পৌঁছলে ঢাকা থেকে সিলেটগামী সাগরিকা বাসের সঙ্গে সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই শিশু মোশারফ ও জব্বার মিয়া মারা যান।

পরে মাধবপুর থানা পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা আহত চারজনকে উদ্ধার করে মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রূপা আক্তার মারা যায়।

আরও পড়ুন:
পদ্মার পানিতে বন্দি ৬৭ গ্রাম
৩ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর, টাঙ্গাইলে বন্যার অবনতি
জামালপুরের ১৩ ইউনিয়নে পানিবন্দি হাজারো মানুষ
৫ দিন ধরে বিপৎসীমার ওপরে যমুনা
যমুনার পানি বাড়ল আরও ২ সেন্টিমিটার

শেয়ার করুন

অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কা, রাজমিস্ত্রি নিহত

অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কা, রাজমিস্ত্রি নিহত

জামালপুরে দুর্ঘটনার পর স্থানীয়রা ট্রাকটি আটক করলেও পালিয়ে যায় ট্রাকের চালক ও হেলপার। ছবি: নিউজবাংলা

জামালপুর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মো. অনিক জানান, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত চারজনকে ভর্তি করার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুপুরের দিকে রকিবুল মারা যান। বাকি তিনজন চিকিৎসাধীন।

জামালপুরের মেলান্দহে অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কায় একজন নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন তিনজন।

উপজেলার চরবানি পাকুরিয়া ইউনিয়নের তালতলা এলাকায় সোমবার সকাল ৮টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত রাজমিস্ত্রি রকিবুল টিকাদারের বাড়ি মেলান্দহ উপজেলার সাধুপুর গ্রামে।

আহতরা হলেন একই গ্রামের নুরু শেখ, সুরুজ মিয়া ও মিলন মিয়া। তারা সবাই জেলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (ওসি) এম এম মঈনুল ইসলাম জানান, সকালে মেলান্দহের ঝিনাই ব্রিজের পরে দেওয়ানগঞ্জগামী একটি ট্রাক জামালপুরগামী অটোরিকশাটিকে সামনে থেকে ধাক্কা দেয়। এতে অটোরিকশার চার যাত্রী গুরুতর আহত হন।

জামালপুর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মো. অনিক জানান, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত চারজনকে ভর্তি করার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুপুরের দিকে রকিবুল মারা যান। বাকি তিনজন চিকিৎসাধীন।

ওসি মঈনুল জানান, দুর্ঘটনার পর স্থানীয়রা ট্রাকটি আটক করলেও পালিয়ে যান ট্রাকের চালক ও হেলপার।

এই ঘটনায় পুলিশ কোনো অভিযোগ পায়নি বলেও জানান ওসি।

আরও পড়ুন:
পদ্মার পানিতে বন্দি ৬৭ গ্রাম
৩ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর, টাঙ্গাইলে বন্যার অবনতি
জামালপুরের ১৩ ইউনিয়নে পানিবন্দি হাজারো মানুষ
৫ দিন ধরে বিপৎসীমার ওপরে যমুনা
যমুনার পানি বাড়ল আরও ২ সেন্টিমিটার

শেয়ার করুন

সাপের কামড়ে নারীসহ মৃত ২

সাপের কামড়ে নারীসহ মৃত ২

মৃত মোকাদ্দেস হোসেনের ছোট ভাই হাবিবুর রহমান জানান, ভোররাত সাড়ে ৪টার দিকে তার ভাই প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গেলে গোখড়া সাপ তাকে দংশন করে। আর দক্ষিণ মনোহরপুর গ্রামের গৃহবধূ রোকসানা বেগমকে গভীর রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় সাপ কামড় দেয়।

ঝিনাইদহের শৈলকুপায় সাপের কামড়ে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে।

উপজেলার রঘুনন্দনপুর ও দক্ষিণ মনোহরপুর গ্রামে রোববার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

মৃতরা হলেন, রঘুনন্দনপুর গ্রামের মোকাদ্দেস হোসেন ও দক্ষিণ মনোহরপুর গ্রামের আজগার আলির স্ত্রী রোকসানা বেগম।

মৃত মোকাদ্দেস হোসেনের ছোট ভাই হাবিবুর রহমান জানান, ভোররাত সাড়ে ৪টার দিকে তার ভাই প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গেলে গোখড়া সাপ তাকে দংশন করে। প্রথমে তাকে স্থানীয় ওঝার কাছে নিয়ে যাওয়া হয়।

সেখানে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে সকাল ৮টার দিকে তাকে শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে চিকিৎসক মোকাদ্দেসকে মৃত ঘোষণা করেন।

শৈলকুপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যালের অফিসার কনক জানান, তার পায়ে দুটি দংশনের চিহ্ন রয়েছে। স্থানীয় কবিরাজ দেখিয়ে রোগীকে অনেক দেরিতে হাসপাতালে আনা হয়েছে। হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে নিত্যানন্দপুর ইউনিয়নের ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য বলাই কুমার বিশ্বাস জানান, দক্ষিণ মনোহরপুর গ্রামের গৃহবধূ রোকসানা বেগম ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। গভীর রাতে তাকে সাপ কামড় দেয়।

পরে যন্ত্রণা শুরু হলে স্বজনরা তাকেও প্রথমে গ্রাম্য ওঝার কাছে নিয়ে যান। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান তিনি।

আরও পড়ুন:
পদ্মার পানিতে বন্দি ৬৭ গ্রাম
৩ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর, টাঙ্গাইলে বন্যার অবনতি
জামালপুরের ১৩ ইউনিয়নে পানিবন্দি হাজারো মানুষ
৫ দিন ধরে বিপৎসীমার ওপরে যমুনা
যমুনার পানি বাড়ল আরও ২ সেন্টিমিটার

শেয়ার করুন

পানের বরজে বানের পানি, প্রণোদনা চান চাষিরা

পানের বরজে বানের পানি, প্রণোদনা চান চাষিরা

মাদারীপুরে পানের বরজ বৃষ্টির পানিতে ক্ষয়ক্ষতি হওয়ায় প্রণোদনা চেয়েছেন চাষিরা। ছবি: নিউজবাংলা

পানচাষি মজিবুর শেখ বলেন, ‘আমাদের পানের যে ক্ষতি হয়েছে তাতে সরকার যদি আমাদের দিকে না তাকায় তাইলে আমরা শেষ। আমাদের এলাকা পান চাষ করেই টিকে আছি। যদি আমরা আর চাষ না করতে পারি তাইলে এই অঞ্চলে আর পানচাষি থাকবে না।’

কয়েক দিনের টানা বৃষ্টিতে মাদারীপুরে আড়িয়াল খাঁ নদে পানি বেড়ে বন্যার দেখা দিয়েছে। হঠাৎ বেড়ে যাওয়া পানি নদীর দুই তীর উপচে বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

এতে কালকিনি উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নে পানের বরজে পানি ঢুকে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

ক্ষতি পুষিয়ে নিতে সরকারি প্রণোদনার দাবি পানচাষিদের। কিন্তু কৃষি কর্মকর্তা বলছেন, পানচাষিদের তেমন কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি। তবে খোঁজ নিয়ে দেখবেন এমন কোনো ঘটনা ঘটেছে নাকি।

পানচাষিদের সঙ্গে কথা বলে জানান যায়, গেল কয়েক দিনের বৃষ্টি ও উজান থেকে আসা ঢলে কালকিনি পৌরসভার দক্ষিণ রাজদী, উত্তর রাজদী, পাতাবালি ঠেঙ্গামারা, বাশঁগাড়ি, এনায়েতনগর, রমজানপুরসহ অন্তত ১১টি ইউনিয়নে ফসলি জমিতে পানি উঠেছে।

এসব এলাকার পানের বরজে পানি ঢুকে গেছে। এ ছাড়া এসব এলাকার পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। রোপা আমন ধানের চারা এখন পানিতে তলিয়ে আছে। তবে এসব অঞ্চলের প্রধান কৃষি ফসল পানের বরজে পানি ঢুকে ক্ষতির পরিমাণটা বেশি হয়েছে বলে দাবি কৃষকদের।

কালকিনি পৌরসভার উত্তর রাজদী গ্রামের পানচাষি ইকবাল হাওলাদার বলেন, ‘কয়েক দিনের বৃষ্টিতে পানের বরজে উজানের পানি ঢুকছে। সেচ পাম্প দিয়া বরজ থেইকা পানি সরানোর চেষ্টা করছি। কিন্তু পানির চাপ অনেক বেশি।

‘আমার দুই বিঘা জমির পানের বরজ নষ্ট হয়েছে। কৃষি অফিস থেকে লোকজন এসেও দেখে যায় নাই। এমনিতে একটু উচুঁ জমিতে পান চাষ করা হলেও পানি বেশি হওয়ায় ক্ষতিটা হয়েছে।’

পানচাষি মজিবুর শেখ বলেন, ‘আমাদের পানের যে ক্ষতি হয়েছে তাতে সরকার যদি আমাদের দিকে না তাকায় তাইলে আমরা শেষ। আমাদের এলাকা পান চাষ করেই টিকে আছি। যদি আমরা আর চাষ না করতে পারি তাইলে এই অঞ্চলে আর পানচাষি থাকবে না।’

সরকারি সহযোগিতার জন্য একই কথা বলেন আরও কয়েকজন পানচাষি।

এ ব্যাপারে কালকিনি উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মিল্টন বিশ্বাস জানান, কালকিনি উপজেলায় মূলত পান আবাদ করা হয়। উপজেলায় এ বছর ১৯০ হেক্টর জমিতে পান চাষ করা হয়েছে। সম্প্রতি বন্যায় পানের বরজসহ বিভিন্ন ফসলের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

তবে পানের বরজ একটু উচুঁ জমিতে হওয়ায় তেমন প্রভাব পড়বে না। তারপরেও চাষিরা ক্ষতিগ্রস্ত হলে তাদের সহযোগিতা করা হবে বলে জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
পদ্মার পানিতে বন্দি ৬৭ গ্রাম
৩ নদীর পানি বিপৎসীমার ওপর, টাঙ্গাইলে বন্যার অবনতি
জামালপুরের ১৩ ইউনিয়নে পানিবন্দি হাজারো মানুষ
৫ দিন ধরে বিপৎসীমার ওপরে যমুনা
যমুনার পানি বাড়ল আরও ২ সেন্টিমিটার

শেয়ার করুন