স্বল্প মূলধনীর দাপট ঠেকাতে উদ্যোগী বিএসইসি

স্বল্প মূলধনীর দাপট ঠেকাতে উদ্যোগী বিএসইসি

একটি ব্রোকারেজ হাউজে পুঁজিবাজারের লেনদেন দেখছেন বিনিয়োগকারীরা। ছবি: নিউজবাংলা

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত যেসব কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ১ কোটি টাকা থেকে ৩০ কোটি টাকার মধ্যে, সেগুলো নিয়ে কাজ করবে এই কমিটি। এর আগের নিউজবাংলায় এক প্রতিবেদনে জানিয়েছিল কম শেয়ার থাকলেও শেয়ার দর হয়ে যাচ্ছে আকাশচুম্বী।

চাঙ্গা পুঁজিবাজারে স্বল্প মূলধনী বেশ কিছু কোম্পানির শেয়ার দর অস্বাভাবিকভাবে বেড়ে যাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে বিষয়টি নিয়ে করণীয় নির্ধারণে একটি কমিটি গঠন করেছে পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি।

এই কোম্পানিগুলোর বিষয়ে কী সিদ্ধান্ত নেয়া যায় সে বিষয়ে সুপারিশ করবে এই কমিটি।

তিন সদস্যের এই কমিটিকে আগামী ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে সুনির্দিষ্ট প্রস্তাবনা দিতে বলা হয়েছে।

কমিটির সদস্যের মধ্যে আছেন বিএসইসির কমিশনার অধ্যাপক ড. শেখ শামসুদ্দিন আহমেদ, কমিশনার অধ্যাপক মিজানুর রহমান ও অতিরিক্ত পরিচালক মো. নজরুল ইসলাম।

বিষয়টি নিশ্চিত করে বিএসইসি নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র রেজাউল করিম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘এ বিষয় নিয়ে অনেক আগে থেকে কাজ হচ্ছে। সম্প্রতি এটির একটি নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।’

তিনি জানান, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত যেসব কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ১ কোটি টাকা থেকে ৩০ কোটি টাকার মধ্যে, সেগুলো নিয়ে কাজ করবে এই কমিটি।

এর আগের নিউজবাংলায় এক প্রতিবেদনে জানিয়েছিল কম শেয়ার থাকলেও শেয়ার দর হয়ে যাচ্ছে আকাশচুম্বী।

প্রকৌশল খাতের ৪২টি কোম্পানির মধ্যে বেশির ভাগ কোম্পানির পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ ১০ কোটি টাকার নিচে।

এ খাতের সবচেয়ে কম পরিশোধিত মূলধন রেনউইক যজ্ঞেশ্বর, যার পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ ২ কোটি টাকা, শেয়ারসংখ্যা ২০ লাখ।

এই কোম্পানির আয়, লভ্যাংশে ইতিহাস, শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য বিবেচনা করলে যে বাজারদর, সেটি অবিশ্বাস্য মনে হবে।

কোম্পানিটির শেয়ারের সর্বোচ্চ দর উঠেছিল ২০২০ সালের ২ সেপ্টেম্বর ১ হাজার ৬২০ টাকা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছে ১১৪৯ টাকা ৯০ পয়সায়।

আজিজ পাইপের পরিশোধিত মূলধন ৫ কোটি ৩৭ লাখ টাকার কিছু বেশি। শেয়ার আছে ৫৩ লাখ ৪৭ হাজার ১২৫টি।

৯ কোটি ৪০ লাখ টাকা পরিশোধিত মূলধনের কোম্পানি বাংলাদেশ ল্যাম্পস লিমিটেড। জুনে ক্লোজিংয়ের এই কোম্পানিটি ২০২০ সালের জন্য তার শেয়ারধারীদের ১ টাকা করে নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে।

কোম্পানিটির সর্বোচ্চ দর ছিল ২০২০ সালের ২ ডিসেম্বর ২২০ টাকা ৩০ পয়সা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছে ১৯৯ টাকা ৫০ পয়সায়।

২ কোটি ৭৩ লাখ টাকা পরিশোধিত মূলধনের কোম্পানি মুন্নু এগ্রো অ্যান্ড জেনারেল মেশিনারিজ। কোম্পানিটির শেয়ারের সর্বোচ্চ দর ছিল ৩১ আগস্ট ৯৫৬ টাকা ৯০ টাকা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছে ৮৪৯ টাকা ৪০ পয়সায়।

এ খাতের কোম্পানি বাংলাদেশ অটোকারস লিমিটেডের পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ ৪ কোটি ২৬ লাখ টাকা। জুনে ক্লোজিংয়ের এই কোম্পানিটির শেয়ারের সর্বোচ্চ দর উঠেছিল ২০২০ সালের ৩ সেপ্টেম্বর ১৭৯ টাকা ৯০ পয়সা। বৃহস্পতিবার শেয়ারপ্রতি দর ছিল ১৭০ টাকা ৬০ পয়সা।

খাদ্য আনুষঙ্গিক খাত

এ খাতের বেশির ভাগ কোম্পানি পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ এক কোটি টাকার কম। এর মধ্যে আছে এপেক্স ফুড লিমিটেডের ৫ কোটি ৭ লাখ টাকা।

২০১৫ সাল থেকে কোম্পানিটি কোনো বছর শেয়ারপ্রতি ২ টাকার বেশি লভ্যাংশ নিতে পারেনি। গত বছর দিয়েছে দেড় টাকা।

চলতি বছর তৃতীয় প্রান্তিক শেষে শেয়ারপ্রতি আয় দাঁড়িয়েছে ১ টাকা ২৩ পয়সা। আর বৃহস্পতিবার দাম ছিল ১৬৫ টাকা।

বঙ্গজ লিমিটেডের পরিশোধিত মূলধন ৭ কোটি ৬২ লাখ টাকা।

জেমিনি সি ফুডের শেয়ারসংখ্যা ৪৬ লাখ ৯১ হাজার। শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ২১ পয়সা। গত বছর শেয়ারপ্রতি লোকসান দিয়েছে ৯ টাকা ৮৩ পয়সা। চলতি বছর প্রথম ৯ মাসে লোকসান দিয়েছে ৬ টাকা ২৩ পয়সা।

এমন একটি কোম্পানির শেয়ারদর বৃহস্পতিবার দাঁড়িয়েছে ২৪০ টাকা।

৬৬ লাখ শেয়ারের ন্যাশনাল টি কোম্পানি গত ৭ বছরে কখনও শেয়ারপ্রতি ৩ টাকার বেশি লভ্যাংশ দেয়নি। চলতি বছর তৃতীয় প্রান্তিক শেষে তাদের শেয়ারপ্রতি লোকসান দাঁড়িয়েছে ৩১ টাকা ৯১ পয়সা।

কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ১১৬ টাকা ৯০ পয়সা। আর সর্বশেষ দাম ৫৬৮ টাকা ২০ পয়সা।

স্বল্প মূলধনীর দাপট ঠেকাতে উদ্যোগী বিএসইসি
পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক প্রতিষ্ঠান বিএসইসি। ছবি: নিউজবাংলা

জিলবাংলা সুগার মিলসের শেয়ারসংখ্যা ৬০ লাখ, ইতিহাসে কখনও লভ্যাংশ দিতে না পারা কোম্পানিটি চলতি বছর ৯ মাসে শেয়ারপ্রতি ৪৭ টাকার বেশি লোকসান দিয়েছে। শেয়ারপ্রতি কোনো সম্পদ নেই, উল্টো দায় আছে ৭০১ টাকা ৪৬ পয়সা। কিন্তু দাম ১৭২ টাকা ৬০ পয়সা।

একই অবস্থা শ্যামপুর সুগারের। চলতি বছর তিন প্রান্তিক শেষে শেয়ারপ্রতি ৭৭ টাকা ৭০ পয়সা লোকসান দেয়া কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি দায় ৯৮৯ টাকা ৩৭ পয়সা। কিন্তু দাম ১৩১ টাকা ৬০ পয়সা।

রসায়ন ওষুধ খাত

এমবি ফার্মা গত ৬ বছরে কখনও শেয়ারপ্রতি ৩ টাকার বেশি লভ্যাংশ ঘোষণা করেনি।

চলতি বছর তিন প্রান্তিক শেষে আয় করেছে ২ টাকা ৩৮ পয়সা। শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য আছে ২৪ টাকা ৯ পয়সা। কোম্পানিটির শেয়ারসংখ্যা ২৪ লাখ।

রেকিড বেনকিউজারের শেয়ারসংখ্যা ৪৭ লাখ ২৫ হাজার। ২০২০ সালে শেয়ারপ্রতি নগদ লভ্যাংশ দিয়েছে ১৪০ টাকা। শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ১৭০ টাকা ৯৫ পয়সা।

বৃহস্পতিবার শেয়ারপ্রতি দর ছিল ৪ হাজার ৪২০ টাকা ৫০ পয়সা।

ফার্মা এইডের শেয়ারসংখ্যা ৩১ লাখ ২০ হাজার। সব ৫ বছরে সর্বোচ্চ লভ্যাংশ দিয়েছে শেয়ারপ্রতি ৫ টাকা।

কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ৮২ টাকা ৫৫ পয়সা। আর দাম ৪৬০ টাকা ৮০ পয়সা।

১৫ লাখ ১ হাজার ৯২০টি শেয়ারের কোম্পানি লিব্রা ইনফিউশন ২০১৯ সালের পর আয় ব্যয়ের কোনো হিসাব জমা দেয়নি।

সবশেষ যখন হিসাব দিয়েছিল, সে বছর শেয়ারপ্রতি আয় করে ১ টাকা টাকা ৫ পয়সা। বৃহস্পতিবার এই কোম্পানির শেয়ারদর ছিল ৭৭২ টাকা ১০ পয়সা। অবশ্য এই কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য অনেক, ১ হাজার ২৬৯ টাকা।

৭৭ লাখ শেয়ারের ইমাম বাটন সব শেষ লভ্যাংশ দিয়েছিল ২০১০ সালে। এই কোম্পানিটির শেয়ারদর পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ২৫টি ব্যাংকের চেয়ে বেশি।

চলতি বছরও তিন প্রান্তিকে ৫১ পয়সা লোকসান দেয়া কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ৫ টাকা ৮১ পয়সা। আর বৃহস্পতিবার দাম ছিল ৪১ টাকা ২০ পয়সা।

পাট খাত

শেয়ারপ্রতি ১৪৭ টাকা দায় নিয়ে ধুঁকতে থাকা জুট স্পিনার্স কখনও লভ্যাংশ দিয়েছে, এমন ইতিহাস ডিএসইর ওয়েবসাইটে নেই।

চলতি বছর তিন প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি ৩৩ টাকা ৮৩ পয়সা লোকসান দেয়া কোম্পানিটির শেয়ারদর ১৬৮ টাকা ৮০ পয়সা। গত এক বছরে এই দর ১৮০ টাকা পর্যন্ত উঠেছিল।

এই কোম্পানিটির শেয়ারসংখ্যা ১৭ লাখ।

২০২০ সালের প্রথম প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি ৬ টাকা ২০ পয়সা লোকসানের হিসাব দেয়ার পর অন্য দুই প্রান্তিকের হিসাব এখনও দেয়নি নর্দার্ন জুট।

কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ৮১ টাকা ৬৬ পয়সা। গত বছর লভ্যাংশ দিয়েছে ৫০ পয়সা।

বৃহস্পতিবার লেনদেন শেষে দাম ৩৭১ টাকা ৮০ পয়সা। তবে এটিই সর্বোচ্চ দাম নয়। গত এক বছরে কোম্পানিটির শেয়ারের সর্বোচ্চ দাম ছিল ৫২৯ টাকা ৯০ পয়সা, আর দুই বছরে সর্বোচ্চ দাম ছিল ১ হাজার ২৬৮ টাকা ৪০ পয়সা।

এর কারণ সেই কম পেইডআপ ক্যাপিটাল। এর শেয়ারসংখ্যা ২১ লাখ ৪২ হাজার।

২০১৫ সাল থেকে শেয়ারপ্রতি সর্বোচ্চ ১ টাকা লভ্যাংশ দেয়া সোনালী আঁশ চলতি বছর ৯ মাসে আয় করেছে ৭৫ পয়সা। কোম্পানির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ২২৫ টাকার কিছুটা বেশি।

বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির শেয়ারদর ছিল ৪৯৪ টাকা ২০ পয়সা। তবে এক বছরে সর্বোচ্চ দাম ছিল ৭১১ টাকা।

কোম্পানিটির শেয়ারসংখ্যা ২৭ লাখ ১২ হাজার।

অন্যান্য খাত

২০০৯ সাল থেকে কখনও ১০ শতাংশের বেশি লভ্যাংশ দিতে না পারা স্ট্যান্ডার্ড সিরামিকের শেয়ারপ্রতি সম্পদ ৯ টাকা ৫৬ পয়সা।

গত ৫ বছরে শেয়ারপ্রতি সর্বোচ্চ ১ টাকা ৫৮ পয়সা আয় করেছে ২০১৮ সালে। গত বছর শেয়ারপ্রতি লোকসান দিয়েছে ৬ টাকা ৩২ পয়সা। চলতি বছর তিন প্রান্তিক শেষে লোকসান হয়েছে ৬৪ পয়সা।

বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির শেয়ারদর দাঁড়িয়েছে ২৫২ টাকা ৮০ পয়সা। তবে গত দুই বছরে সর্বোচ্চ দাম ছিল ৭৪০ টাকার বেশি।

কোম্পানিটির শেয়ারসংখ্যা ৬৫ লাখ। পরিশোধিত মূলধন সাড়ে ৬ কোটি টাকার বেশি। এটিই এই কোম্পানিটির প্রতি মাঝেমধ্যে বিনিয়োগকারীদের আকৃষ্ট হওয়ার কারণ।

কখনও লভ্যাংশ না দেয়া বস্ত্র খাতের দুলামিয়া কটনের শেয়ারপ্রতি কোনো সম্পদমূল্য নেই, উল্টো দায় আছে ৩৬ টাকা ২৫ পয়সা। ২০১৬ সাল থেকে সবচেয়ে ভালো করেছে যে বছর, সে বছরও শেয়ারপ্রতি লোকসান দিয়েছে ১ টাকা ২৮ পয়সা। চলতি বছর ৯ মাসে লোকসান ৪৭ পয়সা।

এই কোম্পানিটির শেয়ারদর এই খাতের সবচেয়ে শক্তিশালী কোম্পানির একটি স্কয়ার টেক্সটাইলের চেয়ে বেশি।

বৃহস্পতিবার স্কয়ারের শেয়ারের দর দাঁড়িয়েছে ৩৭ টাকা। আর দুলামিয়ার ৭৮ টাকা ৫০ পয়সা।

এর কারণ লুকিয়ে আছে সেই শেয়ারসংখ্যার ‘মাহাত্ম্যে’।

দুলামিয়ার শেয়ারসংখ্যা ৭৫ লাখ ৫৬ হাজার ৬০০টি। আর স্কয়ারের ১৯ কোটি ৭৫ লাখ ৫২ হাজারটি।

শেয়ারপ্রতি ২০ টাকা ১ পয়সা সম্পদমূল্যের দেশ গার্মেন্টস ২০১৬ সালে ৩০ শতাংশ আর পরের বছর ১৮ শতাংশ লভ্যাংশ দেয়ার পর দুই বছর ১০ শতাংশ বোনাস আর ২০২০ সালে ৩ শতাংশ বোনাস শেয়ার দিয়েছে।

চলতি বছর তিন প্রান্তিকে শেয়ারপ্রতি ২৬ পয়সা লোকসান দেয়া কোম্পানিটির দাম বৃহস্পতিবার ছিল ১৯০ টাকা।

কারণ, এর শেয়ারসংখ্যা। সব মিলিয়ে শেয়ার ৭৫ লাখ ৩৪ হাজার ৮৫৬টি।

৩৮ টাকা ৮৫ পয়সা সম্পদমূল্য আর চলতি বছর তিন প্রান্তিকে ১ টাকা ৮৪ পয়সা আয় নিয়ে রহিম টেক্সটাইলের দাম বৃহস্পতিবার দাঁড়ায় ৩৪৩ টাকা ৫০ পয়সা।

কোম্পানিটির শেয়ারসংখ্যা ৯৪ লাখ ৫৯ হাজার ৬৮৩টি।

তিন বছরে শেয়ারসংখ্যা ২৩ গুণ করে লোকসানি কোম্পানিতে পরিণত হওয়া স্টাইলক্রাফট চলতি বছর তিন প্রান্তিকে শেয়ার প্রতি লোকসান দিয়েছে ৫৬ পয়সা। শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ২৯ টাকা ৯৬ পয়সা। তবে ২ বছরে সর্বোচ্চ দাম ছিল ৯১৯ টাকার বেশি।

কোম্পানিটির শেয়ারসংখ্যা ১ কোটি ৩৮ লাখ ৮৪ হাজার ৭৫০টি। বৃহস্পতিবার কোম্পানিটির শেয়ার দর ছিল ১৯৪ টাকা ৬০ পয়সা।

জ্বালানি খাতে ইস্টার্ন লুব্রিকেন্ট ২০১৬ সাল থেকে শেয়ারপ্রতি সর্বোচ্চ লভ্যাংশ দিয়েছে ১০ টাকা। আর মেঘনা পেট্রোলিয়াম গত বছর দিয়েছে ১৫ টাকা।

লুব্রিকেন্টের শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য ১৭৮ টাকার কিছুটা বেশি, আর মেঘনার ১৪৮ টাকার কিছুটা বেশি।

কিন্তু দুই কোম্পানির শেয়ারদরে আকাশপাতাল পার্থক্য। বৃহস্পতিবার মেঘনার শেয়ার বিক্রি হয়েছে ২০১ টাকা ৮০ পয়সা আর লুব্রিকেন্টের ১ হাজার ৭৫১ টাকা ৭০ পয়সায়।

কেন? এই কারণটা লুকিয়ে আছে সেই শেয়ারসংখ্যার হিসাবে। মেঘনার শেয়ারসংখ্যা ১০ কোটি ৮২ লাখ ১৬ হাজার ১০৮টি, আর লুব্রিকেন্টের ৯ লাখ ৯৪ হাজার।

এই খাতের লোকসানি কোম্পানি সিভিও পেট্রক্যামিকেলের দাম ২০২ টাকা ৫০ পয়সা। তবে এককালে সেটি ৯০০ টাকাতেও উঠেছিল।

আর শক্তিশালী আর্থিক ভিত্তিক পাওয়ার গ্রিডের শেয়ারদর ৫৯ টাকা ২০ পয়সা।

গত বছর লোকসানের কারণে লভ্যাংশ না দেয়া সিভিও গত ৪ বছরে শেয়ারপ্রতি সর্বোচ্চ আয় করেছে ২৬ পয়সা আর চলতি বছর তিন প্রান্তিকে লোকসান দিয়েছে ১ টাকা ৯৭ পয়সা। কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য আছে ১৩ টাকা ৯০ পয়সা।

অন্যদিকে শেয়ারপ্রতি ১১০ টাকার বেশি সম্পদমূল্যের পাওয়ার গ্রিড গত ৪ বছরে শেয়ারপ্রতি সর্বনিম্ন আয় করেছে ৪ টাকা ৪৩ পয়সা।

দুই কোম্পানির শেয়ারদরে তাহলে এমন ব্যবধান কেন? জবাবটা সম্ভবত শেয়ারসংখ্যায়।

পাওয়ার গ্রিডের শেয়ার সংখ্যা ৭১ কোটি ২৭ লাখ ২৬ হাজার ৯৯১টি আর সিভিওর ২ কোটি ৫২ লাখ ৪৫ হাজারটি।

লোকসানের কারণে কখনও লভ্যাংশ দিতে না পারা সাভার রিফ্রাকটরিজের শেয়ারপ্রতি সম্পদমূল্য আছে ৬ টাকা ২৮ পয়সা। কিন্তু এর শেয়ারদর আকাশচুম্বী।

বৃহস্পতিবার দাম ছিল ২৫৭ টাকা ৬০ পয়সা। তবে গত এক বছরে সর্বোচ্চ দাম ছিল ৩৫০ টাকার বেশি।

কোম্পানিটির শেয়ারসংখ্যা ১৩ লাখ ৯২ হাজার ৮০০ হওয়া ছাড়া আর কোনো কারণ আছে বলে প্রতীয়মান হয় না।

মিউচ্যুয়াল ফান্ডেও একই চিত্র

পপুলার লাইফ ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের ইউনিটপ্রতি সম্পদমূল্য আছে ১২ টাকা ৩৯ পয়সা। বৃহস্পতিবার ইউনিটপ্রতি দাম দাঁড়িয়েছে ৬ টাকা ৯০ পয়সা।

অন্যদিকে ইউনিটপ্রতি ১৬ টাকা ৩২ পয়সা সম্পদমূল্যের প্রাইম ফিন্যান্স ফার্স্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ডের দর ছিল ২০ টাকা ৩০ পয়সা।

এর কারণ সেই একই। প্রথম ফান্ডের ইউনিটসংখ্যা ২৯ কোটি ৯০ লাখ ৮৯ হাজার ২৭টি। অন্যদিকে দ্বিতীয়টির ইউনিট সংখ্যা ২ কোটি।

আরও পড়ুন:
খেলাপি ঋণ কমাতে পারল ২৮ ব্যাংক, পুঁজিবাজারের ১৮টি
১০ বছর ৭ মাস পর সাত হাজারের হাতছানি
যেখান থেকে পতন, তার কাছাকাছি সূচক, ফের বিমাময় বাজার
পুঁজিবাজার: এবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজর বিশেষ তহবিলে
বিমা-বস্ত্রে দারুণ দিন, মিউচ্যুয়াল ফান্ড ধসাল গ্রামীণ টু

শেয়ার করুন

মন্তব্য

সাউথ বাংলার নতুন চেয়ারম্যান কাদির মোল্লা

সাউথ বাংলার নতুন চেয়ারম্যান কাদির মোল্লা

আবদুল কাদির মোল্লা পোশাক ও বস্ত্র খাতের শিল্পপ্রতিষ্ঠান থার্মেক্স গ্রুপ লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক। ফাইল ছবি

২০১৩ সালে অনুমোদন পাওয়া ৯ ব্যাংকের একটি সাউথ বাংলা অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক। নতুন চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পাওয়া আবদুল কাদির মোল্লা ব্যাংকটির উদ্যোক্তা পরিচালকদের অন্যতম। আবু জাফর মোহাম্মদ শফিউদ্দিন টিএস ট্রান্সফরমারসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার। তিনিও ব্যাংকটির উদ্যোক্তাদের একজন।

পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত সাউথ বাংলা অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স (এসবিএসি) ব্যাংকের নতুন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন থার্মেক্স গ্রুপের কর্ণধার আবদুল কাদির মোল্লা। এ ছাড়া নতুন ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন আবু জাফর মোহাম্মদ শফিউদ্দিন।

রোববার ব্যাংকটির ১২৬তম পরিচালনা পর্ষদের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত হয়।

২০১৩ সালে অনুমোদন পাওয়া ৯ ব্যাংকের একটি সাউথ বাংলা অ্যাগ্রিকালচার অ্যান্ড কমার্স ব্যাংক। নতুন চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পাওয়া আবদুল কাদির মোল্লা ব্যাংকটির উদ্যোক্তা পরিচালকদের অন্যতম। আবু জাফর মোহাম্মদ শফিউদ্দিন টিএস ট্রান্সফরমারসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার। তিনিও ব্যাংকটির উদ্যোক্তাদের একজন।

আবদুল কাদির মোল্লা পোশাক ও বস্ত্র খাতের শিল্পপ্রতিষ্ঠান থার্মেক্স গ্রুপ লিমিটেডের চেয়ারম্যান ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক।

শতভাগ রপ্তানিকারক এই বৃহৎ শিল্প গ্রুপে থার্মেক্স টেক্সটাইল মিলস্, থার্মেক্স স্পিনিং, থার্মেক্স নিট ইয়ার্ন, থার্মেক্স ইয়ার্ন ডাইং, থার্মেক্স ওভেন ডাইং, আদুরী অ্যাপারেলস্, আদুরী নিট কোম্পোজিটসহ আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন ১৬টি সহযোগী প্রতিষ্ঠান রয়েছে।

ইতোমধ্যে সরকারের সিআইপি (রপ্তানি) মর্যাদা এবং জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ‘কর বাহাদুর’ পরিবারের সম্মাননা পেয়েছেন কাদির মোল্লা।

ব্যবসায় প্রশাসনে মাস্টার্স ডিগ্রিধারী এই শিল্পপতি সামাজিক দায়বদ্ধতার অংশ হিসেবে মজিদ মোল্লা ফাউন্ডেশনের আওতায় আবদুল কাদির মোল্লা সিটি কলেজ, এনকেএম হাইস্কুল অ্যান্ড হোমস, আবদুল কাদির মোল্লা ইন্টারন্যাশনাল স্কুল ও পাঁচকান্দি ডিগ্রি কলেজ প্রতিষ্ঠা করেছেন।

প্রতিষ্ঠার পর থেকে এসবিএসির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করছিলেন এস এম আমজাদ হোসেন। তিনি লকপুর গ্রুপের কর্ণধার।

যুক্তরাষ্ট্রসহ কয়েকটি দেশে অর্থ পাচার, এসবিএসি ব্যাংক থেকে বেনামি ঋণ, রপ্তানি না করেও রপ্তানি দেখানোসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগে এস এম আমজাদ হোসেনের বিরুদ্ধে তদন্ত করছে বিভিন্ন সংস্থা।

এ বছরের মার্চে আমজাদ হোসেন, তার স্ত্রী সুফিয়া আমজাদ ও পালিত মেয়ে তাজরির ব্যাংক অ্যাকাউন্টে লেনদেন স্থগিত করে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ)। এর আগে এস এম আমজাদ হোসেনের দেশত্যাগ এবং সম্পদ বিক্রি ও হস্তান্তরে নিষেধাজ্ঞা দেয় দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

৭ সেপ্টেম্বর পরিচালনা পর্ষদ বরাবর পদত্যাগপত্র জমা দেন আমজাদ হোসেন।

আরও পড়ুন:
খেলাপি ঋণ কমাতে পারল ২৮ ব্যাংক, পুঁজিবাজারের ১৮টি
১০ বছর ৭ মাস পর সাত হাজারের হাতছানি
যেখান থেকে পতন, তার কাছাকাছি সূচক, ফের বিমাময় বাজার
পুঁজিবাজার: এবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজর বিশেষ তহবিলে
বিমা-বস্ত্রে দারুণ দিন, মিউচ্যুয়াল ফান্ড ধসাল গ্রামীণ টু

শেয়ার করুন

আয় বাড়লেও লভ্যাংশ বাড়ায়নি সামিট পাওয়ার

আয় বাড়লেও লভ্যাংশ বাড়ায়নি সামিট পাওয়ার

সামিট পাওয়ারের একটি বিদ্যুৎকেন্দ্র

গত বছরের জুলাই থেকে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি আয় করেছে ৫ টাকা ২৫ পয়সা। এর মধ্যে সাড়ে তিন টাকা লভ্যাংশ হিসেবে বিতরণের সিদ্ধান্ত হয়েছে। আগের বছর এই আয় ছিল ৫ টাকা ১৭ পয়সা। অর্থাৎ শেয়ার প্রতি আয় বেড়েছে ৮ পয়সা। ২০১৯ সালে আয় ছিল ৪ টাকা ৭৮ পয়সা। তখনও লভ্যাংশ ৩৫ শতাংশই ছিল।

মহামারির বছরে চার বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি আয় করলেও লভ্যাংশ না বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের কোম্পানি সামিট পাওয়ার।

শেয়ার প্রতি সাড়ে ৩ টাকা বা ৩৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ। আগের দুই বছরও একই পরিমাণ লভ্যাংশ দিয়েছিল কোম্পানিটি।

রোববার কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদের বৈঠকে গত ৩০ জুন সমাপ্ত অর্থবছরের হিসাব পর্যালোচনা করে এই সিদ্ধান্ত হয় বলে নিউজবাংলাকে জানিয়েছেন সামিট পাওয়ারের কোম্পানি সচিব স্বপন কুমার পাল।

তিনি জানান গত বছরের জুলাই থেকে চলতি বছরের জুন পর্যন্ত কোম্পানিটি শেয়ার প্রতি আয় করেছে ৫ টাকা ২৫ পয়সা।

আগের বছর এই আয় ছিল ৫ টাকা ১৭ পয়সা। অর্থাৎ শেয়ার প্রতি আয় বেড়েছে ৮ পয়সা।

কেবল গত বছরের চেয়ে বেশি আয় নয়, সামিটের এই আয় গত চার বছরের মধ্যেই সর্বোচ্চ।

২০১৮ সালে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় ছিল ৪ টাকা ৪০ পয়সা আর ২০১৯ সালে ছিল ৪ টাকা ৭৮ পয়সা।

২০১৮ ও ২০১৯ সালে সদ্য সমাপ্ত অর্থবছরের চেয়ে কম আয় করেও শেয়ার প্রতি সাড়ে তিন টাকা অর্থাৎ ৩৫ শতাংশ নগদ লভ্যাংশ দিয়েছিল কোম্পানিটি।

আয় বাড়লেও লভ্যাংশ বাড়ায়নি সামিট পাওয়ার
সামিট পাওয়ারের লভ্যাংশ ঘোষণা সংক্রান্ত বিজ্ঞপ্তি

আয়ের পাশাপাশি সামিটের সম্পদমূল্যও বেড়েছে। গত ৩০ জুন শেষে শেয়ার প্রতি সম্পদমূল্য হয়েছে ৩৪ টাকা ৪৫ পয়সা। আগের বছর কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সম্পদ মূল্য ছিলো ৩১ টাকা ৫০ পয়সা।

অর্থাৎ এক বছরে সম্পদমূল্য বেড়েছে ২ টাকা ৯৫ পয়সা বা ৯.৩৬ শতাংশ।

লভ্যাংশের রেকর্ড ডেট নির্ধারণ করা হয়েছে ২৪ অক্টোবর। অর্থাৎ সেদিন যাদের হাতে শেয়ার থাকবে তারা পাবেন লভ্যাংশ।

আগামী ৫ ডিসেম্বর বার্ষিক সাধারণ সভায় এই লভ্যাংশ চূড়ান্ত হবে। করোনাকালে এই সভা হবে ডিজিটাল প্ল্যাটফরমে।

আরও পড়ুন:
খেলাপি ঋণ কমাতে পারল ২৮ ব্যাংক, পুঁজিবাজারের ১৮টি
১০ বছর ৭ মাস পর সাত হাজারের হাতছানি
যেখান থেকে পতন, তার কাছাকাছি সূচক, ফের বিমাময় বাজার
পুঁজিবাজার: এবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজর বিশেষ তহবিলে
বিমা-বস্ত্রে দারুণ দিন, মিউচ্যুয়াল ফান্ড ধসাল গ্রামীণ টু

শেয়ার করুন

দীর্ঘ হচ্ছে সংশোধন, আবার সপ্তাহ শুরু পতনে

দীর্ঘ হচ্ছে সংশোধন, আবার সপ্তাহ শুরু পতনে

গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে যে সংশোধন শুরু হয়েছে, তা থামেনি আজও। একটি ব্রোকারেজ হাউজে হতাশা নিয়ে শেয়ার মূল্য দেখছেন বিনিয়োগকারী।

গত ১২ সেপ্টেম্বর সংশোধন শুরুর দিন সূচক পড়েছিল ৫৬ পয়েন্ট। ১৯ সেপ্টেম্বর পরের রোববার সূচকের পতন হয় ৩৭ পয়েন্ট। আর এক সপ্তাহ পর সূচক পড়ল ৭ পয়েন্ট। তবে লেনদেন বৃদ্ধি পেয়েছে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ। গত ১২ সেপ্টেম্বরের পর সবচেয়ে বেশি টাকার শেয়ার হাতবদল হয়েছে।

টানা তৃতীয় রোববার পতন নিয়ে শুরু হলো পুঁজিবাজারের লেনদেন।

জুলাই থেকে টানা এক হাজার দুইশ পয়েন্টে বেশি সূচক বাড়ার পর সেপ্টেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহ থেকে সংশোধন শুরু হয়েছে, তাতে সূচকের পতন না ঘটলেও বেশিরভাগ শেয়ারের দরপতন ঘটছে।

দুই সপ্তাহ এভাবে চলার পর চলতি সপ্তাহ থেকে বাজার ঘুরে দাঁড়ানোর যে আশা করছিলেন বিনিয়োগকারীরা, তা পূরণ হলো না।

তবে আগের দুই সপ্তাহের তুলনায় সূচকের পতন হয়েছে কম। গত ১২ সেপ্টেম্বর সংশোধন শুরুর দিন সূচক পড়েছিল ৫৬ পয়েন্ট।

১৯ সেপ্টেম্বর পরের রোববার সূচকের পতন হয় ৩৭ পয়েন্ট। আর এক সপ্তাহ পর সূচক পড়ল ৭ পয়েন্ট।

আগের দুই পতনের মতোই এবারও সূচক বেড়ে গিয়ে শেষ বেলায় পড়েছে।

১২ সেপ্টেম্বর সূচক এক পর্যায়ে সূচক বেড়ে গিয়েছিল ৭৮ পয়েন্ট। সেখান থেকে ১২৪ পয়েন্ট পতন হয় বেলা শেষে।

১৯ সেপ্টেম্বর লেনদেনের শুরুতে সূচক বেড়ে গিয়েছিল ২৮ পয়েন্ট। সেখান থেকে ৬৫ পয়েন্ট পতনে শেষ হয় লেনদেন।

আর টানা তৃতীয় রোববার সূচক এক পর্যায়ে বেড়ে যায় ২৯ পয়েন্ট। সেখান থেকে পতন হয় ৩৬ পয়েন্ট।

দীর্ঘ হচ্ছে সংশোধন, আবার সপ্তাহ শুরু পতনে
রোববার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেনের চিত্র

তবে সূচকের পতন হলেও লেনদেন বেড়েছে অনেকটাই। আগের কর্মদিবস বৃহস্পতিবারের ‍তুলনায় চারশ কোটি টাকা বেড়েছে। গত ১২ সেপ্টেম্বর সংশোধন শুরুর পর থেকে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে আজই।

তলানিতে থাকা ব্যাংক খাত আরও দর হারিয়েছে, বিমা খাতের পতন ছিল আরও বেশি। জ্বালানি এবং খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতেও গেছে বাজে দিন। প্রকৌশল খাতেও ভালো গেছে এমন নয়।

অন্যদিকে ওষুধ ও রসায়ন, বস্ত্র এবং ব্যাংক বহির্ভুত আর্থিক খাতে দেখা গেছে মিশ্র প্রবণতা। আর সবচেয়ে ভালো দিন গেছে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে।

সব মিলিয়ে ১১৩টি কোম্পানির শেয়ারদর বৃদ্ধির বিপরীতে কমেছে ২৩০টির দর। আর দাম ধরে রাখতে পেরেছে ৩৩টি।

দীর্ঘ হচ্ছে সংশোধন, আবার সপ্তাহ শুরু পতনেদীর্ঘ হচ্ছে সংশোধন, আবার সপ্তাহ শুরু পতনে

রোববার সূচকের উত্থান ও পতনে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখা ১০টি কোম্পানি

ওষুধ রসায়নে আগ্রহ তুঙ্গে, এরপরই বস্ত্র

মোট লেনদেনের প্রায় ১৭ শতাংশই হয়েছে ওষুধও রসায়ন খাতে। গত কয়েকদিন ধরেই এই খাতটির শেয়ার কিনে চলেছেন বিনিয়োগকারীরা। এবার বিনিয়োগ বাড়ল আরও।

৩৬৮ কোটি টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে এই একটি খাতেই। বৃহস্পতিবার খাতওয়ারি লেনদেনের শীর্ষে থাকার দিন লেনদেন হয়েছিল ২৯৯ কোটি ৪৩ লাখ টাকা।

আগের দিনের তুলনায় ওষুধ ও রসায়ন খাতের লেনদেন বেড়েছে ২২.৯০ শতাংশ।

এই খাতের কোম্পানিগুলোর শেয়ারদর যে খুব বেশি বেড়েছে এমন নয়। ৩১টি কোম্পানির মধ্যে একটির লেনদেন স্থগিত, বেড়েছে ১৬টির, কমেছে ১২টির। দুটির শেয়ার দর ছিল অপরিবর্তিত।

শতকরা হিসেবে সবচেয়ে বেশি দর বেড়েছে সিলভা ও অরিয়ন ফার্মার দর। দুটির শেয়ারদরই বেড়েছে ৮.৭৬ শতাংশ করে।

এছাড়া অরিয়ন ইনফিউশনের দর ৪.৭৯ শতাংশ এবং ফার কেমিক্যালের দর বেড়েছে ২.৫০ শতাংশ।

এই খাতের শেয়ারগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৪.৪৩ শতাংশ দর হারিয়েছে এএফসি এগ্রো। বড় মূলধনি বেক্সিমকো ফার্মা দর হারিয়েছে ৩.১৩ শতাংশ।

বস্ত্র, প্রকৌশলে মিশ্র প্রবণতা

বস্ত্র খাতের সমান সংখ্যাক কোম্পানির শেয়ারের দর বেড়েছে ও কমেছে। এই খাতে লেনদেন হয়েছে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ২৮১ কোটি ৬৯ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ২৭৭ কোটি ৭৫ লাখ টাকা।

৫৮টি কোম্পানির মধ্যে ২৬টির কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছে, কমেছেও সম সংখ্যক, আর অপরিবর্তিত ছিল ৬টির দর।

দীর্ঘ হচ্ছে সংশোধন, আবার সপ্তাহ শুরু পতনে
রোববার মোট লেনদেনের প্রায় অর্ধেক হয় চারটি খাতে

সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পেয়েছে এমন তালিকায় যেমন বেশ কিছু বস্ত্র খাতের কোম্পানি দেখা গেছে, তেমনি দরপতনের তালিকাতেও ছিল আরও বেশ কিছু কোম্পানি।

বস্ত্র খাতের সবচেয়ে বেশি দর বেড়েছে তসরিফা ইন্ডাস্ট্রিস লিমিটেডের ৯.৯০ শতাংশ। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৯.৬৩ শতাংশ বেড়েছে ইভেন্স টেক্সটাইলের দর।

তৃতীয় সর্বোচ্চ ৯.৫২ শতাংশ বেড়েছে জাহিন টেক্সটাইলের আর চতুর্থ সর্বোচ্চ ৬.৬২ শতাংশ বেড়েছে নিউলাইন টেক্সটাইলের।

আবার সবচেয়ে বেশি দরপতনের তালিকায় দ্বিতীয় স্থানেই ছিল তমিজউদ্দিন টেক্সটাইল। অস্বাভাবিকভাবে দর বৃদ্ধি পাওয়া এই কোম্পানিটি দর হারিয়েছে ৭.৪০ শতাংশ।

এছাড়া দেশ গার্মেন্টসের দর ৫.০৫ শতাংশ, আলিফ ইন্ডাস্ট্রিজের ৪.৪০ শতাংশ, মিথুন নিটিংয়ের দর ২.৮৫ শতাংশ কমেছে।

হঠাৎ আগ্রহের কেন্দ্র তথ্যপ্রযুক্তি খাত

আগের দিন এই খাতে লেনদেন ছিল ৩৬ কোটি ৬০ লাখ টাকা। এক লাফে তা প্রায় তিন গুণ হয়েছে। দিন শেষে লেনদেন দাঁড়িয়েছে ১০২ কোটি ৭০ লাখ টাকা।

এই খাতে মোট কোম্পানি ১১টি। পতনের বাজারেও দাম কমেনি একটিরও, বেড়েছে ১০টির। একটির দর ছিল অপরিবর্তিত।

দিনের সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধি পাওয়া আমরা নেটওয়ার্ক এই খাতেরই কোম্পানি। এর দর বেড়েছে ৯.৯২ শতাংশ।

এ ছাড়া আমরা টেকনোলজির দর ৫.৬৪ শতাংশ, ডেফোডিল কম্পিউটারের দর ৫.০৩ শতাংশ, বিডিকমের দাম ৪.১২ শতাংশ, জেনেক্স ইনফোসিসের দর ৩.৮৭ শতাংশ বেড়েছে।

ব্যাংক-বিমা ধরাশায়ী

ব্যাংক খাত হতাশা আরও বাড়াল। যমুনা, আইসিবি ইসলামী, পূবালী ও শাহজালাল ইসলামী ব্যাংকের দর বেড়েছে যৎসামান্য। দর ধরে রাখতে পেরেছে আটটি ব্যাংক। কমেছে বাড়ি ১৯টির দরই।

এসব শেয়ারের মধ্যে কেবল যমুনা ব্যাংকের শেয়ারদর বেড়েছে ৫০ পয়সা, বাকি চারটির দাম বেড়েছে ১০ পয়সা করে।

মোট লেনদেন চারশ কোটি টাকা বাড়লেও ব্যাংক খাতে বেড়েছে অল্পই। আগের দিন হাতবদল হয়েছিল ৯০ কোটি ৪১ লাখ টাকা, সেটি সামান্য বেড়ে ৯২ কোটি ১৩ লাখ টাকা।

দীর্ঘ হচ্ছে সংশোধন, আবার সপ্তাহ শুরু পতনে
প্রধান খাতগুলোর মধ্যে এই ছয়টিতে লেনদেন সবচেয়ে কম হয়েছে

ব্যাংক খাতের সবচেয়ে বেশি কমেছে সাউথ বাংলা এগ্রিকালচার ব্যাংকের দর, ৩.২৫ শতাংশ। এনআরবিসি ব্যাংকের ২.৫০ শতাংশ এবং এবি ব্যাংকের দর কমেছে ১.৯৫ শতাংশ।

বিমা খাতেও ঢালাও পতন হয়েছে। এই খাতে কেবল ৫টির দর বেড়েছে ৫টির দর, দর ধরে রাখতে পেরেছে তিনটি, কমে গেছে বাকি ৪৩টির দর।

তবে লেনদেন কিছুটা বেড়েছে। আগের দিন লেনদেন ছিল ১৯৫ কোটি ১৬ লাখ টাকা। তা বেড়ে হয়েছে ২১৬ কোটি ৯১ লাখ টাকা।

বিমা খাতের সবচেয়ে বেশি দর বেড়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির ৩.৭৬ শতাংশ। মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্সের দর ১.৬৮ শতাংশ, কর্ণফুলি ইন্স্যুরেন্সের দশমিক ৬৪ শতাংশ, ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের দশমিক ১৬ শতাংশ, আর ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্সের দর বেড়েছে দশমিক ০৭ শতাংশ।

পতন হওয়া কোম্পানির মধ্যে শীর্ষে আছে রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, যার শেয়ার প্রতি দর কমেছে ৫.৭৮ শতাংশ।

এ ছাড়া প্রগতি লাইফের দর ৪.৯৭ শতাংশ, ফারইস্ট লাইফের ৪.৩২ শতাংশ কমেছে।

অন্যান্য খাতের লেনদেন

প্রধান অন্যান্য খাতগুলোর মধ্যে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতে দরপতন হলেও লেনদেন বেড়েছে।

বৃহস্পতিবার লেনদেন ছিল ১০৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা। সেটি এক লাফে বেড়ে হয়েছে ১৮৭ কোটি ১৩ লাখ টাকা।

২৩টি কোম্পানির মধ্যে ১৫টির দর কমেছে, ৬টির বেড়েছে আর দুটির দর ছিল অপরিবর্তিত।

প্রকৌশল খাতেও লেনদেন বেড়েছে। আগের দিন এই খাতে লেনদেন ছিল ২০৫ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। সেটি বেড়ে হয়েছে ২২৭ কোটি ৩৭ লাখ টাকা।

৪২টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ১৭টির, একটির দর পাল্টায়নি আর কমেছে ২৪টির দর।

আর্থিক খাতে লেনদেন হয়েছে ১৯৪ কোটি ১৯ লাখ টাকা, আগের কর্মদিবসে যা ছিল ১৭০ কোটি ১৮ লাখ টাকা।

এ খাতের আটটি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দর কমেছে, বেড়েছে ১১টির আর অপরিবর্তিত ছিল তিনটির দর।

বিবিধ খাতের ১৪টি লেনদেন হয়েছে ১২৭ কোটি ২০ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ১২৪ কোটি ৫৪ লাখ টাকা।

এই খাতে ১৪টি কোম্পানির মধ্যে চারটির দর বেড়েছে। নয়টির দর কমেছে, একটির দর ছিল অপরিবর্তিত

খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতের ২০টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ২টির, কমেছে ১৬টির, দুটির দর ছিল অপরিবর্তিত।

লেনদেন হয়েছে ৪৯ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৪৯ কোটি ২০ লাখ টাকা।

মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতে ইউনিটগুলোর মধ্যে ৩১টি ফান্ডের দর কমেছে। দুটির দর বেড়েছে। তিনটির দর আগের দিনের মতোই আছে।

হাতবদল হয়েছে কেবল ২০ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। আগের দিন হাতবদল হয়েছিল ১৫ কোটি ৬০ লাখ টাকা।

সূচক ও লেনদেন

ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ১৩ দশমিক ৪৫ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ৭ হাজার ২৩৭ পয়েন্টে।

শরিয়াভিত্তিক কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসইএস ৬ দশমিক ৪৬ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৫৭৪ পয়েন্টে।

বাছাই করা কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএস-৩০ সূচক ৭ দশমিক ৯৪ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৬৬৫ পয়েন্টে।

দিনশেষে লেনদেন হয়েছে ২ হাজার ২৫৭ কোটি ২৯ লাখ টাকা। আগের দিন যা ছিল ১ হাজার ৮৫২ কোটি ৪১ লাখ টাকা। এক দিনে লেনদেন বেড়েছে ৪০৪ কোটি ৮৮ লাখ টাকা।

চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) প্রধান সূচক সিএএসপিআই ১৯ দশমিক ৩৫ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ২১ হাজার ১২৬ দশমিক ৭০ পয়েন্টে।

৩১৭টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১১৩টির, কমেছে ১৭২টির ও পাল্টায়নি ৩২টির।

লেনদেন হয়েছে ৯৫ কোটি টাকা। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৫০ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন:
খেলাপি ঋণ কমাতে পারল ২৮ ব্যাংক, পুঁজিবাজারের ১৮টি
১০ বছর ৭ মাস পর সাত হাজারের হাতছানি
যেখান থেকে পতন, তার কাছাকাছি সূচক, ফের বিমাময় বাজার
পুঁজিবাজার: এবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজর বিশেষ তহবিলে
বিমা-বস্ত্রে দারুণ দিন, মিউচ্যুয়াল ফান্ড ধসাল গ্রামীণ টু

শেয়ার করুন

দর সংশোধনে নতুন প্রবণতায় পুঁজিবাজার

দর সংশোধনে নতুন প্রবণতায় পুঁজিবাজার

গত ১৪ জানুয়ারি থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত দর সংশোধনে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচক কমেছিল ৮২১ পয়েন্ট। এর মধ্যে লকডাউন আতঙ্কে ৪ এপ্রিল হারানো ১৮২ পয়েন্ট বাদ দিলে সেটি হয় ৬৩৯ পয়েন্ট। গত ৩০ মে থেকে ২৯ জুন পর্যন্ত সংশোধন পর্বে সূচকের পতন আর দেখা যায়নি। তখন থেকে খাতওয়ারি সংশোধনের প্রবণতা দেখা যায়। গত ১২ সেপ্টেম্বর থেকে আবার সংশোধন পর্বেও সূচকের পতন দেখা যাচ্ছে না। এই ১০ কর্মদিবসে পড়েছে কেবল ৮ পয়েন্ট। আগের আড়াই মাসে ব্যাপকভাবে বেড়ে যাওয়া স্বল্প মূলধনি, দুর্বল, লোকসানি কোম্পানির শেয়ারের দরপতন হলেও বড় মূলধনি মৌলভিত্তির শেয়ারের দর বৃদ্ধির কারণে অবস্থান ধরে রেখেছে পুঁজিবাজার।

গত মে ৩০ মে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের প্রধান সূচক ডিএসইএক্স ছয় হাজার পয়েন্ট অতিক্রম করার পর টানা এক মাস একই বৃত্তে ঘুরপাক খেয়েছে।

৩০ মে সূচক উঠে ৬ হাজার ৮ পয়েন্ট। এরপর কোনোদিন ছয় হাজারের নিচে, কোনোদিন আবার ছয় হাজারের ওপরে, এমন করতে করতে ২৯ জুন সূচকের অবস্থান দাঁড়ায় ৬ হাজার ৪২ পয়েন্টে।

এরপর আরেক দফা উত্থান শুরু হয়ে টানা চলে গত ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। ৩০ জুন থেকে ৪১ কর্মদিবসে সূচক বেড়েছে ১ হাজার ২১৬ পয়েন্ট।

এরপর দুই সপ্তাহ আবার দেখা যাচ্ছে সেই মে থেকে জুন পর্যন্ত চিত্র। ৭ হাজার ২৫৮ পয়েন্ট উঠার পর আবার সেই মে থেকে জুন পর্যন্ত এক মাসের মতো চিত্র দেখা যাচ্ছে।

এই দুই সপ্তাহে ১০ কর্মদিবসে সূচক পড়েছে ৮ পয়েন্ট। এর মধ্যে কমেছে ৪ দিন, বেড়েছে ৬দিন, কিন্তু বলতে গেলে কোনো দিন ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের উচ্ছ্বাস ছিল না।

পুঁজিবাজারকেন্দ্রিক নানা ফেসবুক পেজে শত শত মানুষ বলছেন, সূচক বাড়লেও তাদের শেয়ারের দর কমে যাচ্ছে। আর যেদিন সূচক পড়ে যাচ্ছে, সেদিন আরও পড়ছে।

এর কারণ হচ্ছে, এই দুই সপ্তাহে সূচক বেড়েছে মূলত বড় মূলধনি বড় মূলধনি ও বহুজাতিক বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ারদরে উত্থানের কারণে। এসব শেয়ারে ব্যক্তিশ্রেণির ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগ সচরাচর কম থাকে।

পুঁজিবাজারে দর সংশোধনের মধ্যেও সূচকের একই বৃত্তে ঘুরপাক একেবারেই সাম্প্রতিক প্রবণতা। এই সময়ে কোনো একটি খাতে শেয়ারের পতন হলে অন্য খাতের বৃদ্ধিতে অবস্থান ধরে রাখে পুঁজিবাজার।

এবার আবার কোনো বিশেষ খাত বাড়ছে না, ব্যাংক ছাড়া মৌলভিত্তির বেশির ভাগ শেয়ারের দর বৃদ্ধি পাচ্ছে, বিপরীতে কমছে এতদিন বেড়ে চলা স্বল্প মূলধনি, লোকসানি কোম্পানির শেয়ারের দর। স্বল্প মূলধনির মধ্যে যেগুলো উচ্চ মুনাফা করতে পারছে, সেগুলোর দরপতন হচ্ছে না।

দর সংশোধনে নতুন প্রবণতায় পুঁজিবাজার

চলতি বছর দুই দফা সংশোধনে যা হয়েছে, এবার যা হচ্ছে

গত বছরের জুলাই থেকে শুরু হওয়া উত্থানে জানুয়ারি পর্যন্ত টানা বাড়ার পর ওই মাসের মাঝামাঝি থেকে এপ্রিলের শুরু পর্যন্ত সূচক পড়েছিল প্রায় ৮০০ পয়েন্ট। ১৪ এপ্রিল সূচক ৫ হাজার ৯০৯ পয়েন্টে ওঠার পর থেকে ৪ এপ্রিল তা নেমে আসে ৫ হাজার ৮৮ পয়েন্ট।

এর মধ্যে ৪ এপ্রিল সূচক ১৮২ পয়েন্ট পড়ে যায় পরদিন লকডাউনে লেনদেন বন্ধ হয়ে যায় কি না, এই আতঙ্কে। সেটি বাদ দিলেও ৬০০ পয়েন্টের বেশি সূচক পড়েছিল।

আবার জানুয়ারির মাঝামাঝি থেকে এপ্রিলের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত সংশোধনে লেনদেনের ব্যাপক পতনের যে চিত্র দেখা গিয়েছিল, সেটিও এবার দেখা যাচ্ছে না।

১৭ জানুয়ারি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেন ছিল ২ হাজার ৩৮৪ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। অথচ ৫ এপ্রিল তা নেমে আসে ২৩৬ কোটি ৬০ লাখ টাকায়।

৩০ মে থেকে এক মাস যখন আবার সংশোধন পর্ব শুরু হয়, তখন অতটা না কমলেও লেনদেন কমে যায় অনেকটাই।

৩০ মে লেনদেন ছিল ২ হাজার ১৪৯ কোটি ২১ লাখ টাকা আর ২৯ জুন এই সংশোধন শেষ হওয়ার দিন হাতবদল হয় ১ হাজার ১৪৮ কোটি ৮ লাখ টাকা।

এবার লেনদেন এতটা কমছে না। ৯ সেপ্টেম্বর লেনদেন ছিল ২ হাজার ৬৯৬ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। এরপর ১০ কর্মদিবসে মোট তিন দিন লেনদেন হয়েছে ২ হাজার কোটি টাকার কম, যার মধ্যে সর্বনিম্ন ছিল ২০ সেপ্টেম্বর ১ হাজার ৭৬২ কোটি ৫৬ লাখ টাকা।

সতর্কতা গায়ে না মেখে এখন হতাশা

পতন এমন কিছু নয়, তবে আগের দুই দফা সংশোধনের মধ্যে বিনিয়োগকারীরা যে ধরনের হতাশার কথা বলতেন, এবারও সূচকের এক বৃত্তে ঘুরপাকের মধ্যেও তার অন্যথা হচ্ছে না।

পুঁজিবাজারে তৃতীয় দফায় উত্থানে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে লোকসানি, বন্ধ ও স্বল্প মূলধনি বেশ কিছু কোম্পানির শেয়ারদর। এগুলোর মধ্যে কয়েকটির পরিচালনা পর্ষদ পুনর্গঠন ইস্যু ছিল, কিন্তু এগুলোর মধ্যে কিছু কোম্পানি সহসা মুনাফায় ফিরতে পারবে কি না, এ নিয়ে সংশয় আছে। আবার বেশ কিছু লোকসানি কোম্পানির লভ্যাংশ আসার সম্ভাবনাও একেবারেই ক্ষীণ।

এসব কোম্পানির কোনোটির শেয়ারদর দ্বিগুণ, কোনোটির তার চেয়ে বেশি বেড়েছে এই আড়াই মাসে। সঙ্গে কেবল শেয়ার সংখ্যা কম, এ কারণে বেড়েছে আরও বেশ কিছু কোম্পানির শেয়ারদর। পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা বারবার এসব কোম্পানিতে বিনিয়োগ নিয়ে সতর্ক করেছেন, এমনকি পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির চেয়ারম্যানও শক্তিশালী মৌলভিত্তির শেয়ারে বিনিয়োগের।

কিন্তু ক্রমেই বাড়তে থাকা দুর্বল কোম্পানিতে সে সময় বিনিয়োগ বাড়িয়েই চলেছেন ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারীরা। কোনো সাবধানতা তারা কানে তোলেননি। বরং পুঁজিবাজারকেন্দ্রিক ফেসবুক পেজগুলোতে নানা পোস্ট আসতে থাকে যে, এগুলো আরও বাড়বে।

এসব কোম্পানির শেয়ারদর অনেক বাড়লেও সূচকে প্রভাব পড়ে না বললেই চলে। এর কারণ স্বল্প মূলধনি কোম্পানির শেয়ার সংখ্যা একেবারেই নগণ্য। আর লোকসানি জেড ক্যাটাগরির শেয়ার দরে উত্থান পতনে সূচকে কোনো হেরফের হয় না। ফলে এখন যখন এসব কোম্পানির শেয়ারে দরপতন হচ্ছে, তখন সূচক আসলে সেভাবে পড়ছে না। আর এ কারণে এসব শেয়ারের মালিকরা প্রশ্ন তুলছেন, শেয়ারের দরপতন হচ্ছে, সূচক কীভাবে বাড়ছে বা এক জায়গায় থাকছে।

দর সংশোধনে নতুন প্রবণতায় পুঁজিবাজার

বিশ্লেষকরা যা বলছেন

পুঁজিবাজার বিশ্লেষক আবু আহমেদ নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সূচকের উত্থান পতন পুঁজিবাজারের স্বাভাবিক বিষয়। এটা নিয়ে আতঙ্কের কিছু দেখছি না। আতঙ্কের ছিল যখন খারাপ কোম্পানির ক্রমাগত দর বৃদ্ধির মাধ্যমে সূচক ও লেনদেন বাড়ছিল।

‘এর আগে যখন একইভাবে বিমা কোম্পানির শেয়ার দর বেড়েছে তখনও স্বাভাবিক ছিল না পুঁজিবাজার। এখন অনেকটা পরিবর্তন হয়েছে। পুঁজিবাজারে খারাপ কোম্পানির দাপট কমে এখন ফান্ডামেন্টাল কোম্পানির শেয়ার দর বাড়ছে। এতে সূচক ও লেনদেন যদি কিছুটা সংশোধনও হয় তাতে ক্ষতির কিছু নেই।’

বিনিয়োগকারীদের ক্রমে শেয়ার কেনাবেচার প্রবণতা থেকে বের হয়ে আসার পাশাপাশি মার্জিন ঋণেও নিরুৎসাহিত করেছেন আবু আহমেদ। বলেন, ‘মার্জিন ঋণে শেয়ার কেনা হলে তাদের সুদ প্রদানের একটি চাপ থাকে। ফলে তারা চাইলেও দীর্ঘমেয়াদে বিনিয়োগ করতে পারে না।’

তিনি বলেন, ‘লোন নিয়ে যারা দর্বল কোম্পানিতে বিনিয়োগ করছে তারাই এখন লোকসানে আছে। কিন্ত ভালো কোম্পানিতে যারা বিনিয়োগ করেছে তাদের এ ধরনের পুঁজিবাজারে লোকসান হওয়ার কথা নয়।’

সম্পদ ব্যবস্থাপনা কোম্পানি ভিআইপিবি অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিইও শহিদুল ইসলাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘লেনদেন কমে আসায় আতঙ্কের কিছু দেখছি না। কারণ, বিনিয়োগকারীরা যখন ডে ট্রেডিং যাবে তখন লেনদেন বাড়বে। কিন্ত ডে টেডিংয়ে বিনিয়োগকারীদের মুনাফাও কিন্তু কমে যায়। কারণ যতবার শেয়ার কেনা বেচা করবে ততবারই তাকে কমিশন দিতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘দর সংশোধনে লেনদেন কমে আসা মানে এখন বিনিয়োগকারীরা শেয়ার ধরে রেখেছেন। তারা দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগে আগ্রহী হচ্ছে।’

‘পুঁজিবাজারে দুর্বল কোম্পানির শেয়ারের দর যখন বাড়ছিল তখন অনেক বিনিয়োগ হয়েছে। লেনদেনও বেড়েছে। এখন সেসব শেয়ারের দর কমে আসায় তারা শেয়ার ক্রয় বিক্রয় না করে ধরে রেখেছে তাই লেনদেন আগের তুলনায় কমেছে। এটা পুঁজিবাজারের স্বাভাবিক অবস্থা। এটা নিয়ে বিনিয়োগকারীদের বিচলিত হওয়ার কিছু নেই’-এমনটিও বলেন এই বিশ্লেষক।

আরও পড়ুন:
খেলাপি ঋণ কমাতে পারল ২৮ ব্যাংক, পুঁজিবাজারের ১৮টি
১০ বছর ৭ মাস পর সাত হাজারের হাতছানি
যেখান থেকে পতন, তার কাছাকাছি সূচক, ফের বিমাময় বাজার
পুঁজিবাজার: এবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজর বিশেষ তহবিলে
বিমা-বস্ত্রে দারুণ দিন, মিউচ্যুয়াল ফান্ড ধসাল গ্রামীণ টু

শেয়ার করুন

পুঁজিবাজার: পাকিস্তান থেকে খানিকটা ভারত থেকে অনেক পিছিয়ে

পুঁজিবাজার: পাকিস্তান থেকে খানিকটা ভারত থেকে অনেক পিছিয়ে

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের লেনদেন দেখছেন একজন বিনিয়োগকারী। ফাইল ছবি

সামাজিক খাতের অনেক সূচকেই আমরা আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলোকে বিশেষ করে পাকিস্তানকে অতিক্রম করেছি। কিছু সূচকে আমরা ভারতকেও অতিক্রম করেছি। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, পুঁজিবাজারের ক্ষেত্রে আমরা ভারত থেকে অনেক কম এবং পাকিস্তান থেকেও কিছুটা পেছনে রয়েছি: ডিএসই চেয়ারম্যান

বাংলাদেশের পুঁজিবাজারের আরও অনেক দূর যাওয়া উচিত ছিল বলে মনে করেন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ-ডিএসইর চেয়ারম্যান ইউনুসুর রহমান। তিনি মনে করেন, গত এক যুগে বাংলাদেশের অর্থনীতি যেভাবে এগিয়েছে, তাতে পুঁজিবাজার আরও ভালো অবস্থানে থাকা উচিত ছিল।

বৃহস্পতিবার ডিএসইর সাত সদস্যের প্রতিনিধিদল আইডিআরএ চেয়ারম্যান এম মোশাররফ হোসেনের সঙ্গে তার কার্যালয়ে দেখা করেন। এ সময় তিনি এ কথা বলেন।

বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ‘বাংলাদেশের উন্নয়নের অগ্রভাগে রয়েছে সামাজিক খাত। সামাজিক খাতের অনেক সূচকেই আমরা আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলোকে বিশেষ করে পাকিস্তানকে অতিক্রম করেছি। কিছু সূচকে আমরা ভারতকেও অতিক্রম করেছি। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য, পুঁজিবাজারের ক্ষেত্রে আমরা ভারত থেকে অনেক কম এবং পাকিস্তান থেকেও কিছুটা পেছনে রয়েছি।

‘বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। আমরা এখন ইমারজিং টাইগার। তারপরও উন্নয়নের ক্ষেত্রগুলো নির্ণয় করে এগিয়ে যেতে হবে। এখন পর্যন্ত আমরা ফিনান্সিয়াল সেক্টরে আশানুরূপ উন্নয়ন করতে পারিনি।

বৈঠকে পুঁজিবাজারকে এগিয়ে নিতে ডিএসই ও আইডিআরও একসঙ্গে কাজ করবে বলে জানানো হয়। ডিএসইর পক্ষ থেকে পাঠানো এক বার্তায় বিষয়টি উল্লেখ করা হয়।

সাক্ষাতে ডিএসইর নতুন ব্যবস্থাপনা পরিচালক তারিক আমিন ভূইয়া উপস্থিত ছিলেন। তিনি জানান, ডিএসই আগামীতে ‘বিনিয়োগকারীদের সুরক্ষায় বিমার ব্যবহার’ বিষয়ে একটি সেমিনার করবে।

পুঁজিবাজার: পাকিস্তান থেকে খানিকটা ভারত থেকে অনেক পিছিয়ে
বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের কার্যালয়ে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধিদের বৈঠক

বিষয়টি সম্পূর্ণ নতুন এবং ভিন্ন ধরনের হওয়ায় অন্যান্য দেশের অভিজ্ঞতার আলোকে বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের সঙ্গে অভিজ্ঞতা বিনিময় এবং দেশের পুঁজিবাজারে কীভাবে তা কার্যকর করা যায় সে বিষয়ে তারিক আমিন কথা বলেন।

আইডিআরএ চেয়ারম্যান বলেন, ‘পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীদের সুরক্ষায় ডিএসইর নতুন উদ্যোগ অত্যন্ত সময়য়োপযোগী ও বাস্তবধর্মী একটি পদক্ষেপ। এই পদক্ষেপকে স্বাগত জানাই। সম্পূর্ণ নতুন এবং ভিন্ন ধরনের বিষয় হওয়ায় বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ ডিএসই’র এই উদ্যোগকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে তা বাস্তবায়নের চেষ্টা করবে।’

তিনি বলেন, ‘বিমা সেক্টরসহ পুঁজিবাজারকে এগিয়ে নিতে কাজ করবে উভয় পক্ষ। এই উদ্যোগ বাস্তবায়ন হলে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগকারীরা যেমন উপকৃত হবে এবং পুঁজিবাজারের প্রতি তাদের আস্থা বাড়বে।’

এ জন্য বিএসইসি, বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ, ডিএসই, সিএসই, সাধারণ বীমা করপোরেশন এবং সিডিবিএল-এর প্রতিনিধিদের সমন্বয়ে একটি কমিটি গঠনের প্রস্তাব করেন আইডিআরএ চেয়ারম্যান।

বিমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের সদস্য মইনুল ইসলাম, সাধারণ বিমা করপোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ শাহরিয়ার আহসান এবং ডিএসইর প্রধান পরিচালন কর্মকর্তা এম. সাইফুর রহমান মজুমদারও উপস্থিত ছিলেন।

আরও পড়ুন:
খেলাপি ঋণ কমাতে পারল ২৮ ব্যাংক, পুঁজিবাজারের ১৮টি
১০ বছর ৭ মাস পর সাত হাজারের হাতছানি
যেখান থেকে পতন, তার কাছাকাছি সূচক, ফের বিমাময় বাজার
পুঁজিবাজার: এবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজর বিশেষ তহবিলে
বিমা-বস্ত্রে দারুণ দিন, মিউচ্যুয়াল ফান্ড ধসাল গ্রামীণ টু

শেয়ার করুন

গতি ফিরল না পুঁজিবাজারে, লেনদেনে আবার ভাটা

গতি ফিরল না পুঁজিবাজারে, লেনদেনে আবার ভাটা

টানা দুই সপ্তাহ পুঁজিবাজার অনেকটা গতিহীন। সপ্তাহের শেষ কর্মদিবসেও এমনটি দেখা যাওয়ায় বিনিয়োগকারীদের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। ছবি: নিউজবাংলা

দুই সপ্তাহ ধরে ওঠানামা করতে থাকা পুঁজিবাজারে লেনদেনে দেখা গেছে খরা। সপ্তাহে পাঁচ দিনের মধ্যে তিন দিনই লেনদেন হয়েছে দুই হাজার কোটি টাকার নিচে। জুলাইয়ের পর এমনটি আর দেখা যায়নি।

সূচকের পতন দিয়ে সপ্তাহ শুরু করা পুঁজিবাজার সপ্তাহের শেষ দিন শেষ করল উত্থানে। এই সপ্তাহে দুই দিনে সূচক যতটা পড়েছে, তিন দিনে বেড়েছে তার চেয়ে বেশি। কিন্তু গতি হারিয়েছে লেনদেন।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে সপ্তাহটা শুরু হয়েছিল ৭ হাজার ২২৮ পয়েন্ট নিয়ে, শেষ করেছে ৭ হাজার ২৫০ পয়েন্ট। সূচকে যোগ হয়েছে ২২ পয়েন্ট। কিন্তু এতে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে কোনো উচ্ছ্বাস নেই।

বরং সাড়ে ১০ বছরের মধ্যে সূচক সর্বোচ্চ অবস্থানে উঠার পর গত সপ্তাহ থেকে পুঁজিবাজারে সূচকের উঠানামার মধ্যে বেশিরভাগ শেয়ারের দরপতনে যে হতাশা শুরু হয়, চলতি সপ্তাহে তা আরও গাঢ় হয়েছে।

সপ্তাহটা শুরু হয়েছিল সূচকের ৩৭ পয়েন্ট পতনের মধ্য দিয়ে, পরের দিন তা বাড়ে ১৬ পয়েন্ট। এর পরদিন মঙ্গলবার সূচকে ৫২ পয়েন্ট যোগ হওয়ার মধ্য দিয়ে পুঁজিবাজারে যে গতি বৃদ্ধির আশা করা হচ্ছিল, তা শেষ পর্যন্ত আর পূরণ হয়নি। বুধবার আবার পতনে সূচক হারায় ১৬ পয়েন্ট। শেষ দিন বাড়ে আবার ৮ পয়েন্ট।

গতি হারানো পুঁজিবাজারে লেনদেনে দেখা গেছে ভাটা। সপ্তাহে ৫দিনের মধ্যে তিন দিনই লেনদেন হয়েছে দুই হাজার কোটি টাকার নিচে। আগস্টের পর এমনকি আর দেখা যায়নি।

সপ্তাহের শেষ দিন লেনদেন হয়েছে এক হাজার ৮৫২ কোটি ৪২ লাখ টাকা যা আগের দিনের তুলনায় ২৯৮ কোটি ২৬ লাখ টাকা কম। আগের দিন লেনদেন ছিল ২ হাজার ১৫০ কোটি ৬৮ লাখ টাকা।

প্রতিটি দিনই সূচক বেড়ে শেষ বেলায় কমেছে, যার ব্যতিক্রম হয়নি সপ্তাহের শেষ কর্মদিবস বৃহস্পতিবার।

সকাল ১০ টায় লেনদেন শুরুর ১৬ মিনিটেই সূচক আগের দিনের তুলনায় ২৪ পয়েন্ট বেড়ে যায়। কিন্তু বেলা পৌনে ১২টার দিকে আবার আগের দিনের চেয়ে ৪ পয়েন্ট কমে যায়।

গত সপ্তাহ থেকেই বেলা একটার পর থেকে সূচক কমতে শুরু করার প্রবণতা দেখা দেয়। ফলে সে সময় আবার পতনের আশঙ্কা তৈরি হয়। কিন্তু দুই সপ্তাহের মধ্যে প্রথমবার শেষ বেলায় সূচক বাড়তে শুরু করে।

গতি ফিরল না পুঁজিবাজারে, লেনদেনে আবার ভাটা
বৃহস্পতিবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে লেনদেনের চিত্র

বেলা সোয়া দুইটায় সূচকের যে অবস্থান ছিল, সেখান থেকে পরের ১৫ মিনিটে বাড়ে ১৯ পয়েন্ট। তবে শেষ বেলায় সমন্বয়ের কারণে সেই অবস্থান থেকে ১৫ পয়েন্ট কমে ৭ হাজার ২৫০ পয়েন্ট শেষ হয় দিনের লেনদেন।

টানা ১১ সপ্তাহ উত্থানের পর শেষে গত সপ্তাহে সূচক কমেছিল ৩০ পয়েন্ট। চলতি সপ্তাহে সেখান থেকে ২২ পয়েন্ট ফিরে পেলেও বেশিরভাগ শেয়ার দর হারিয়েছে এই সপ্তাহেও।

আগের সপ্তাহে সূচকের বড় পতন ঠেকানো গেছে বড় মূলধনি ও বহুজাতিক বেশ কিছু কোম্পানির শেয়ারদর বৃদ্ধির কারণে। তবে চলতি সপ্তাহে গতি হারিয়েছে এসব শেয়ারও। একদিন কমলে একদিন বাড়ে, সূচকের এমন প্রবণতা দেখা গেছে বিভিন্ন শেয়ারের ক্ষেত্রেও।

খাত হিসেবে এই সপ্তাহেও হতাশ করেছে ব্যাংক। সপ্তাহের শুরুতে ঝলক দেখিয়ে পড়ে নিভে গেছে বিমা। বস্ত্র, প্রকৌশল, ওষুধ ও রসায়ন, আর্থিক, খাদ্য, তথ্য প্রযুক্তি- কোনো খাতই ভালো যায়নি। তবে সবচেয়ে বেশি হতাশ করেছে মিউচ্যুয়াল ফান্ড।

সপ্তাহের শেষ দিন সূচক বৃদ্ধিতে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা রেখেছে ওয়ালটন ইন্ডাস্ট্রিজ। ২.৪ শতাংশ দাম বাড়ায় কোম্পানিটি সূচকে যোগ করেছে ৯.৩৯ পয়েন্ট। এছাড়া ডেল্টালাইফ, বিএটিবিসি, শাহজিবাজার পাওয়ার, অলিম্পিক ইন্ডাস্ট্রিজ, এনভয় টেক্সটাইল, জিপিএইচ ইস্পাত, সিটি ব্যাংক, অরিয়ন ফার্মা ও ইবিএলের শেয়ারদর বাড়ায় যোগ হয়েছে মোট ১৫.৮৪ পয়েন্ট।

গতি ফিরল না পুঁজিবাজারে, লেনদেনে আবার ভাটাগতি ফিরল না পুঁজিবাজারে, লেনদেনে আবার ভাটা

বৃহস্পতিবার সূচক বৃদ্ধি ও পতনে ভূমিকা রেখেছে যে ১০টি করে কোম্পানি

অন্যদিকে সূচক সবচেয়ে বেশি কমেছে যে ১০টি কোম্পানি, সেগুলো হলো, গ্রামীণ ফোন, ব্র্যাক ব্যাংক, লাফার্জ হোলসিম সিমেন্ট, বেক্সিমকো ফার্মা, রবি, বার্জার পেইন্টস, পাওয়ার গ্রিড, বিকন ফার্মা, সাবমেরিন কোম্পানি ও কেপিসিএল।

এই ১০টি কোম্পানির দরপতনে সূচক থেকে বাদ গেছে ৬.৬৯ পয়েন্ট।

লেনদেনের ৪২ শতাংশ ৩ খাতে

আগের দিনের চেয়ে প্রায় তিনশ কোটি টাকা লেনদেন কমে যাওয়ার দিন মোট লেনদেনের ৪২.২৭ শতাংশই হয়েছে ওষুধ রসায়ন, বস্ত্র এবং প্রকৌশল খাতে।

এর মধ্যে ওষুধ ও রসায়ন খাত লেনদেনের শীর্ষে থাকলেও আগের দিনের তুলনায় কমেছে। এই খাতে মোট লেনদেন হয়েছে ২৯৯ কোটি ৪৩ লাখ টাকা, আগের দিন যা হয়েছিল ৩৬৪ কোটি ১০ লাখ টাকা।

দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা বস্ত্র খাতে হাতবদল হয়েছে মোট ২৭৭ কোটি ৭৫ লাখ টাকা, যা আগের দিন ছিল ৩৬১ কোটি ১৩ লাখ টাকা।

তৃতীয় অবস্থানে থাকা প্রকৌশল খাতে লেনদেন অবশ্য বেড়েছে। এই খাতে হাতবদল হয়েছে ২০৫ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। আগের দিন হাতবদল হয়েছিল ১৭৭ কোটি ৬৭ লাখ টাকা।

ওষুধ ও রসায়ন খাতে বেশিরভাগ শেয়ারের দর বেড়েছে। এই খাতের ৩১টি কোম্পানির মধ্যে একটির লেনদেন স্থগিত। বাকিগুলোর মধ্যে বেড়েছে ১৮টির দর, কমেছে ১০টির আর অপরিবর্তিত ছিল দুইটির।

এই খাতের শেয়ারগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ৬.৯৯ শতাংশ বেড়েছে সালভো কেমিক্যালের দর। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ৫.২০ শতাংশ বেড়েছে একটিভ ফাইনের দর। তৃতীয় অবস্থানে থাকা জেএমআই সিরিঞ্জের দর বেড়েছে ৪.৩৭ শতাংশ। চতুর্থ অবস্থানে থাকা গ্লোবাল গেভি কেমিক্যালের দর বেড়েছে ৩.৮১ শতাংশ।

গতি ফিরল না পুঁজিবাজারে, লেনদেনে আবার ভাটা
এই পাঁচটি খাতে লেনদেন হয়েছে সবচেয়ে বেশি, যার মধ্যে প্রথম দিনটিতেই মোট লেনদেনের ৪২ শতাংশ হয়েছে

তবে বস্ত্র খাতে দরপতন হয়েছে। এই খাতের ৫৮টি কোম্পানির মধ্যে ২০টির দাম বৃদ্ধির বিপরীতে কমেছে ৩০টির দর। অপরিবর্তিত ছিল বাকি আটটির দর।

দিনের সবচেয়ে বেশি দর বৃদ্ধির তালিকায় থাকা ইটিএলের দর বেড়েছে ৮.৮৭ শতাংশ। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা এনভয় টেক্সটাইলের দর বেড়েছে ৬.৪৩ শতাংশ। তৃতীয় অবস্থানে থাকা তজিমউদ্দিন টেক্সটাইলের দর বেড়েছে ৪.৪৭ শতাংশ।

লেনদেন বৃদ্ধি পাওয়া প্রকৌশল খাতে দর বৃদ্ধি ও কমেছে-এমন কোম্পানির সংখ্যা প্রায় সমান। ৪২টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ২১টির, কমেছে ২০টির দর। একটির দর ছিল অপরিবর্তিত।

এই খাতের কোম্পানিগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ ৬.৯৯ শতাংশ বেড়েছে কাসেম ইন্ডাস্ট্রিজের দর। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা কেডিএস অ্যাকসেসোরিজের দর বেড়েছে ৪.৬৩ শতাংশ। তৃতীয় অবস্থানে থাকা এসএস স্টিলের দর ৪.০৪ শতাংশ এবং চতুর্থ অবস্থানে থাকা আজিজ পাইপের দর বেড়েছে ৩.৩৪ শতাংশ।

লেনদেন আরও কমল ব্যাংকে, আর্থিক খাতেও গতি নেই

১০টি ব্যাংকের শেয়ার দর কমার বিপরীতে ১২টির বৃদ্ধি এবং বাকি ১০টির দর অপরিবর্তিত ছিল। দারুল লভ্যাংশের পরও সবচেয়ে বড় বাজার মূলধনের এই খাতটিতে বিনিয়োগকারীরা যে আকর্ষণ হারিয়েছে, তার নমুনা দেখা গেল আবার।

২ হাজার কোটি টাকার বেশি লেনদেন, এই অবস্থাতেও ৩২ ব্যাংক মিলিয়ে ১০০ কোটি টাকা ছাড়াতে পারেনি বুধবার। হাতবদল হয়েছিল ৯৪ কোটি ৯০ লাখ টাকা। পরদিন মোট লেনদেন ৩০০ কোটি টাকা কমে যাওয়ার পর এই খাতে লেনদেন আরও কমে হলো ৯০ কোটি ৪১ লাখ টাকা।

ব্যাংকের শেয়ারে বরাবর যে চিত্রটি দেখা যায়, তা আবারও দেখা গেল। দাম বৃদ্ধির হার যেমন নগণ্য, তেমনি নগন্য দর পতনের হার।

সবচেয়ে বেশি ১.৩৮ শতাংশ বেড়েছে সিটি ব্যাংকের দর। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা যমুনা ব্যাংকের দর বেড়েছে ১.২২ শতাংশ। তৃতীয় অবস্থানে থাকা সাউথইস্ট ব্যাংকের দরও বেড়েছে সমপরিমাণ আর চতুর্থ অবস্থানে থাকা ইউসিবির দর বেড়েছে ১.২১ শতাংশ।

অন্যদিকে সবচেয়ে বেশি দর কমা ফার্স্ট সিকিউরিটিজ ইসলামী ব্যাংকের শেয়ার দর হারিয়েছে ২.৫০ শতাংশ। তার পরেই আছে রূপালী ব্যাংক, যার দর কমেছে ১.০৬ শতাংশ। তৃতীয় অবস্থানে থাকা ব্র্যাক ব্যাংকের দর কমেছে ১.০৩ শতাংশ।

বিমার ঢালাও পতন

৫১টি কোম্পানির মধ্যে ৩৭টির দরপতনই বলে এই খাতের বিনিয়োগকারীদের জন্য দিনটি ভালো যায়নি।

দর বেড়েছে ১২টির আর অপরিবর্তিত ছির বাকি দুটির দর।

এই খাতে লেনদেন হয়েছে ১৯৫ কোটি ৮ লাখ টাকা, আগের দিন যা ছিল ২৪১ কোটি ৬১ লাখ টাকা।

গতি ফিরল না পুঁজিবাজারে, লেনদেনে আবার ভাটা
গতি হারানো ব্যাংক আর ঘুমিয়ে যাওয়া মিউচ্যুয়াল ফান্ডে সাম্প্রতিক কালের সবচেয়ে কম লেনদেন হয়েছে

এই খাতে সবচেয়ে বেশি ৬.১৪ শতাংশ বেড়েছে ডেল্টা লাইফের দর। দ্বিতীয় অবস্থানে ইস্টার্ন ইন্স্যুরেন্সের দর বেড়েছে ৪.২১ শতাংশ। তৃতীয় অবস্থানে থাকা ফারইস্ট লাইফের দর ০.৮১ শতাংশ এবং চতুর্থ অবস্থানে থাকা সোনালী লাইফের দর বেড়েছে ০.৬৬ শতাংশ।

দর পতনের দিক দিয়ে শীর্ষে ছিল প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স, যার শেয়ার দর হারিয়েছে ২.৪৫ শতাংশ। দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্সের দর কমেছে ২.১৮ শতাংশ। তৃতীয় অবস্থা থাকা পদ্মা লাইফের শেয়ার দর কমেছে ২ শতাংশ।

অন্যান্য খাতের লেনদেন

প্রধান অন্যান্য খাতগুলোর মধ্যে বিবিধ খাতের ১৪টি লেনদেন হয়েছে ১২৪ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ১৩০ কোটি ২০ লাখ টাকা।

এই খাতের প্রধান কোম্পানি বেক্সিমকো লিমিটেডের দর কমার পর লেনদেনও কমে গেছে। শেয়ার প্রতি ২০ পয়সা দর হারানোর পাশাপাশি লেনদেনও কমে গেছে। কোম্পানিটির শেয়ার হাতবদল হয়েছে ৯৬ কোটি ৯০ লাখ টাকার। আগের দিন হাতবদল হয়েছিল ৯৮ কোটি ৯৭ লাখ টাকার।

এই খাতে ১৪টি কোম্পানির মধ্যে সাতটির দর বেড়েছে। সাতটির দর কমেছে।

খাদ্য ও আনুষঙ্গিক খাতের ২০টি কোম্পানির মধ্যে দর বেড়েছে ১৩টির, কমেছে ৬টির। লেনদেন হয়েছে ৪৯ কোটি ২০ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৫৯ কোটি ৪৭ লাখ টাকা।

লেনদেন কমেছে তথ্য প্রযুক্তি খাতেও। আগের দিন এই খাতের ১১টি কোম্পানিতে লেনদেন হয়েছিল ৪১ কোটি ৬২ লাখ টাকা। বৃহস্পতিবার লেনদেন হয়েছে ৩৬ কোটি ৬০ লাখ টাকা।

আগের দিন ১১টি কোম্পানির সবগুলোর দরপতন হলেও আজ দুটির দর বেড়েছে। আরও কমেছে বাকি ৯টির দর।

মিউচ্যুয়াল ফান্ড খাতে আগের দিন লেনদেন কিছুটা বাড়লেও তা চলতি বছরের সর্বনিম্ন অবস্থানে নেমেছে। ৩৬টি ফান্ডে হাতবদল হয়েছে কেবল ১৫ কোটি ৬০ লাখ টাকা। আগের দিন হাতবদল হয়েছিল ৩২ কোটি ৪৪ লাখ টাকা।

ফান্ডগুলোর মধ্যে ৬টির দর ১০ পয়সা করে এবং একটির ৩০ পয়সা বেড়েছে।

অন্যদিকে ১৩টি ফান্ড দর হারিয়েছে ১০ পয়সা করে আর একটির কমেছে সর্বোচ্চ ৪০ পয়সা।

সূচক ও লেনদেন

ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ৮ দশমিক ৭৫ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৭ হাজার ২৫০ পয়েন্টে।

শরিয়াভিত্তিক কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএসইএস ১ দশমিক ৪৬ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৫৮১ পয়েন্টে।

বাছাই করা কোম্পানি নিয়ে গঠিত ডিএস ৩০ সূচক দশমিক ৩৬ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৬৭৩ পয়েন্টে।

চিটাগং স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) প্রধান সূচক সিএএসপিআই ২ দশমিক ২১ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২১ হাজার ১৫৯ দশমিক ৬০ পয়েন্টে।

৩১৫টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১১৮টির, কমেছে ১৬৩টির ও পাল্টায়নি ৩৪টির।

লেনদেন হয়েছে ৫০ কোটি টাকা। আগের দিন লেনদেন হয়েছিল ৬২ কোটি টাকা।

আরও পড়ুন:
খেলাপি ঋণ কমাতে পারল ২৮ ব্যাংক, পুঁজিবাজারের ১৮টি
১০ বছর ৭ মাস পর সাত হাজারের হাতছানি
যেখান থেকে পতন, তার কাছাকাছি সূচক, ফের বিমাময় বাজার
পুঁজিবাজার: এবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজর বিশেষ তহবিলে
বিমা-বস্ত্রে দারুণ দিন, মিউচ্যুয়াল ফান্ড ধসাল গ্রামীণ টু

শেয়ার করুন

বিনিয়োগের বিকল্প বন্ড, মিউচ্যুয়াল ফান্ড, তবে…

বিনিয়োগের বিকল্প বন্ড, মিউচ্যুয়াল ফান্ড, তবে…

সঞ্চয়পত্র কিনতে বাংলাদেশ ব্যাংকে ভিড়। তবে এ খাতে বিনিয়োগ নিরুৎসাহিত করছে সরকার।

যারা সরাসরি উৎপাদন খাতে বিনিয়োগ না করে আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা সরকারি সঞ্চয়পত্রে টাকা রেখে মুনাফা নিয়ে চলতে চান, তাদের জন্য কঠিন হয়ে যাচ্ছে পরিস্থিতি। ব্যাংকঋণের সুদহার খুবই কম, সঞ্চয়পত্রেও ১৫ লাখ টাকার বেশি বিনিয়োগ করলে এখন মুনাফার হার কমিয়ে দেয়া হয়েছে। তাহলে মানুষ কোথায় বিনিয়োগ করবে? এ ক্ষেত্রে বন্ড ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডে টাকা রাখা যায়। এতে মুনাফা বেশি হতে পারে। তবে এ ক্ষেত্রে বিনিয়োগকারীদের কিছুটা ঝুঁকি থেকে যায়। আর সেগুলো বুঝেশুনে এগোতে হবে।

ব্যাংকে টাকা রেখে মুনাফা হয় না বললেই চলে, মূল্যস্ফীতির হিসাব করলে বছর শেষে মূল্যমান কমে যাচ্ছে টাকার।

সঞ্চয়পত্রেও ইচ্ছা করলে বিনিয়োগ করা যায় না, আবার সেখানে একটি নির্দিষ্ট অঙ্কের বেশি বিনিযোগ করলে মুনাফার হারও কমিয়ে দেয়া হয়েছে।

তাহলে যারা উদ্যোক্তা না হয়ে ক্ষুদ্র সঞ্চয় করবেন, তারা কোথায় যাবেন?

এ ক্ষেত্রে দুটি বিকল্প বিনিয়োগের সুযোগ আছে, যার একটি হলো বন্ড ও অন্যটি মিউচুয়্যাল ফান্ড। এর মধ্যে বন্ডের মুনাফা পুরোপুরি আয়করমুক্ত আর মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মুনাফার একটি নির্দিষ্ট অঙ্ক পর্যন্ত আয়করমুক্ত।

আবার এই দুটি খাতে বিনিয়োগ করলে আয়কর ছাড় পাওয়া যায়। ফলে এগুলোতে বিনিয়োগে দুই দিক থেকে লাভ হয় বিনিয়োগকারীর।

ব্র্যাক ব্যাংকের চেয়ারম্যান ড. আহসান এইচ মনসুর নিউজবাংলাকে বলেন, ‘সাধারণ মানুষের কাছে বন্ডে বিনিয়োগ বিষয়ে তেমন ধারণা নেই্। এ জন্য তারা এ খাতে বিনিয়োগে আগ্রহী হয় না। উচ্চবিত্ত শ্রেণির মানুষ আর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এখানে বিনিয়োগ করে। বাংলাদেশের মানুষ ইচ্ছা করলেই বন্ড কিনতে পারে না। কারণ, বন্ডের সেকেন্ডারি মার্কেট নেই।’

তবে এ ক্ষেত্রেও দিন বদল হতে যাচ্ছে। কারণ, পুঁজিবাজারে বেশ কয়েকটি ব্যাংকের পারপিচুয়াল বন্ড সরাসরি তালিকাভুক্ত হতে যাচ্ছে। পাশাপাশি ইসলামি শরিয়াভিত্তিক সুকুক বন্ড অনুমোদন দেয়া হয়েছে। এগুলোতেও আকর্ষণীয় মুনাফা হতে পারে।

সেই সঙ্গে আরেকটি বিকল্প হলো মিউচ্যুয়াল ফান্ড। পুঁজিবাজারে ৩৬টি ফান্ড তালিকাভুক্ত আছে। পাশাপাশি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত নয়, এমন মিউচ্যুয়াল ফান্ডও আছে এর চেয়ে বেশি। চলতি বছর অনেক ফান্ডই সঞ্চয়পত্রের সুদহারের চেয়ে বেশি হারে লভ্যাংশ দিয়েছে।

তবে এ ক্ষেত্রে কিছুটা ঝুঁকি আছে। কারণ, এই ফান্ডগুলোর লভ্যাংশ পুঁজিবাজারের স্থিতিশীলতার ওপর নির্ভর করে। তাই মিউচ্যুয়াল ফান্ডে বিনিয়োগ করতে হলে পুঁজিবাজার নিয়ে ন্যূনতম জ্ঞান থাকা আবশ্যক।

বন্ড কী

বন্ড হচ্ছে একধরনের চুক্তি বা ঋণপত্র, যার বিপরীতে কোনো প্রতিষ্ঠান বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে মূলধন সংগ্রহ করে।

ইংরেজি ‘বন্ড’ অর্থ অঙ্গীকারনামা বা মুচলেকা। এটির বিপরীতে যে ঋণ গ্রহণ করা হচ্ছে, সেটি নির্দিষ্ট সময়ে প্রতিশ্রুত সুদসহ ফেরত দেয়ার অঙ্গীকারপত্র।

এই ঋণপত্র বা অঙ্গীকারনামার বিপরীতে ইস্যুকারী প্রতিষ্ঠান ব্যক্তি কিংবা বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে তহবিল সংগ্রহ করে। তার জন্য অবশ্য বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন এবং নিজ নিজ ক্ষেত্রে প্রযোজ্য অন্যান্য কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে অনুমোদন নিতে হয়।

বন্ডে বিনিয়োগের বিপরীতে যে সুদের হার উল্লেখ করা থাকে, নির্দিষ্ট বিরতিতে সেই সুদ এবং মূল অর্থের অংশবিশেষ পরিশোধ করা হয়। এই সুদের হার পরিবর্তনশীলও হতে পারে।

সরকার ব্যাংক থেকে ঋণ নেয়, আবার বিল ও বন্ডের মাধ্যমেও অর্থ সংগ্রহ করে। ব্যাংকগুলোও বন্ড ছেড়ে বাজার থেকে অর্থ সংগ্রহ করে। এই বিল ও বন্ডও হতে পারে বিনিয়োগের অন্যতম জায়গা।

শিগগিরই এসব বিল ও বন্ড কেনা যাবে ব্যাংকগুলোর শাখা থেকে। বর্তমানে অন্য ব্যাংকের মাধ্যমে বাংলাদেশ ব্যাংকে হিসাব খুলে এই বিল ও বন্ড কেনা যায়। এসব বন্ডে বিনিয়োগ থেকে প্রাপ্য মুনাফায় কর ছাড়ও রয়েছে।

নতুন ধরনের বন্ড আসছে, যা পারপিচুয়াল বন্ড নামে পরিচিত। এ বন্ড পরিশোধের কোনো নির্দিষ্ট মেয়াদ থাকে না। কোম্পানি অবসায়িত না হওয়া পর্যন্ত এই বন্ড কার্যকর থাকে।

এ বন্ড ছেড়ে ব্যাংক বা ইস্যুকারী প্রতিষ্ঠান সাধারণ মানুষের কাছ থেকে অর্থ সংগ্রহ করে। সেই অর্থের বিপরীতে বছরভিত্তিক বা ষাণ্মাসিক সুদের জন্য কুপন দেয়া হয়। যারা এ বন্ড কেনেন তারা কুপনে নির্ধারিত হারে সুদ পান। তবে সময়ে সময়ে সুদের কিছুটা কমবেশি হয়।

উচ্চ সম্পদশালী ব্যক্তি ও প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা এ ধরনের বন্ডে বিনিয়োগ করে থাকেন। কারণ, এ ধরনের বন্ডে সাধারণ মানুষের বিনিয়োগের সুযোগ সীমিত। তাই পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্তির মাধ্যমে এটিকে সাধারণ মানুষের নাগালে আনার উদ্যোগ নিয়েছে বিএসইসি।

নিয়ম অনুযায়ী, যদি কোনো ইস্যুয়ার পারপিচুয়াল বন্ড ইস্যুর মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ করতে চায়, তাহলে তাকে অবশ্যই প্রস্তাবিত পারপিচুয়াল বন্ডের কমপক্ষে ১০ শতাংশ পাবলিক অফারের মাধ্যমে সংগ্রহ করতে হবে।

ইতোমধ্যে যে ১১টি ব্যাংককে পারপিচুয়াল বন্ড ইস্যুর মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহের অনুমতি দেয়া হয়েছে, সেগুলোকে সরাকরি তালিকাভুক্ত করা হবে।

আন্তর্জাতিক মানদণ্ড অনুযায়ী, সাধারণত মূলধন ভিত্তি শক্তিশালী করতে বিভিন্ন ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান পারপিচুয়াল বন্ডের মাধ্যমে অর্থ সংগ্রহ করে। বিনিময়ে উচ্চ সুদ দেয়।

নতুন ধারার বিনিয়োগ সুকুক বন্ড

সুকুক হলো ইসলামিক শরিয়াহ নীতিমালা মেনে পরিচালিত বন্ড বা আর্থিক পণ্য। প্রচলতি বন্ডের সুদের পরিমাণ নির্ধারিত থাকে, কিন্তু তার বিপরীতে কোনো সম্পদের ব্যাকআপ থাকে না। তবে সুকুক নিদির্ষ্ট সম্পদ বা প্রকল্পের বিপরীতে গঠিত হয়। ওই সম্পদ ও প্রকল্পের আয়ই আনুপাতিক হারে পেয়ে থাকেন সুকুক ইউনিটধারীরা। সুদমুক্ত হওয়ায় বিশ্বব্যাপী এর গ্রহণযোগ্যতা বাড়ছে। বিশ্বব্যাপী দুই ট্রিলিয়ন ডলারের ইসলামি আর্থিক সম্পদের ৭৩ ভাগই ব্যাংকিং সম্পদ, যার ১৭ শতাংশই সুকুক।

সম্প্রতি বেক্সিমকো লিমিটেডের তিন হাজার কোটি টাকার শেয়ারে রূপান্তরযোগ্য সুকুক বন্ড অনুমোদন করেছে বিএসইসি। এতে সর্বনিম্ন ৯ বা তার বেশি মুনাফা মিলবে। আবার বেক্সিমকো লিমিটেডের লভ্যাংশ ১০ শতাংশের বেশি হলে যতটুকু বেশি, তার ১০ শতাংশ যোগ হবে সুকুকের লভ্যাংশে।

আবার এক বছর শেষে বিনিয়োগের ২০ শতাংশ প্রত্যাহারের সুযোগ রয়েছে। এ ক্ষেত্রে কেউ চাইলে নগদ টাকা পাবেন, কেউ চাইলে বেক্সিমকো লিমিটেডের শেয়ার নিতে পারবেন। আর এখানেই বাড়তি মুনাফার সুযোগ আছে।

বিনিয়োগকারীরা বেক্সিমকোর শেয়ার পাবেন শেয়ারের দুই মাসের ভরিত মূল্যের চেয়ে ৭৫ শতাংশ ছাড়ে। ফলে এই শেয়ার বিক্রি করে তারা ৩৩ শতাংশ বেশি মুনাফা করতে পারবেন। এভাবে প্রতিবছরে ১৬ থেকে ১৭ শতাংশ মুনাফা করা সম্ভব।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের একটি বন্ডও অনুমোদনের অপেক্ষায় আছে। ধীরে ধীরে অন্যান্য প্রতিষ্ঠান এ ধরনের বন্ড বিক্রি শুরু করলে বিনিয়োগের নতুন দ্বার উন্মুক্ত হবে। এ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানের আর্থিক ক্ষমতা ও ধার শোধের সংস্কৃতি দেখেই বন্ড কেনা উচিত।

মিউচ্যুয়াল ফান্ড

অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানিগুলো মিউচ্যুয়াল ফান্ড দেশে দেশে বিনিয়োগের আকর্ষণীয় এক সুযোগ। তবে ২০১০ সালে পুঁজিবাজারে মহাধসের পর থেকে এই খাত ঘুমিয়ে ছিল গত এক বছর পুঁজিবাজার চাঙা হয়ে ওঠার পরিপ্রেক্ষিতে এবার আবার এই খাত ঘুরে দাঁড়িয়েছে।

এই ফান্ডগুলোর একটি অংশ পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত, একটি অংশ তালিকাভুক্ত নয়। সম্পদ ব্যবস্থাপনা কোম্পানির কাছ থেকে এই ফান্ডগুলো কেনা যায়।

ফান্ডগুলো জনগণের কাছ থেকে টাকা নিয়ে পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করে। দক্ষ ও অভিজ্ঞরা এর ব্যবস্থাপনায় থাকে বলে এর ঝুঁকি কম থাকে।

বছর শেষে যে মুনাফা হয়, তার কমপক্ষে ৫০ থেকে ৭০ শতাংশ নগদে বিতরণ করা হয়। চলতি বছর পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ও তালিকাভুক্ত নয়, এমন ফান্ডগুলোর বেশির ভাগ সঞ্চয়পত্রের সুদহারের চেয় বেশি হারে লভ্যাংশ বিতরণ করেছে।

তার পরেও এই খাত নিয়ে বিনিয়োগকারীরা সেভাবে আগ্রহী হচ্ছেন না। এর কারণ, বিশেষ করে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ফান্ডের লভ্যাংশ নেয়ার পর ফান্ডের দরপতন।

যে ফান্ড যত বেশি লভ্যাংশ দিয়েছে, তার ইউনিটপ্রতি দর কমে গেছে তত। অথচ এই দর কমার কোনো যৌক্তিক কারণ নেই। কারণ, ফান্ডগুলো গত ৩০ জুনে সমাপ্ত অর্থবছর শেষে হাতে থাকা নগদ টাকার ওপর ভিত্তি করে লভ্যাংশ দিয়েছে। এই লভ্যাংশ দেয়ার পর সেপ্টেম্বরে এসে কোনো ফান্ডের আর্থিক কোনো শক্তি ক্ষয় হয়নি।

এটি বিনিয়োগকারীদের মনস্তাত্ত্বিক চাপের কারণে হয়ে থাকে বলে মনে করেন পুঁজিবাজার বিশ্লেষকরা।

তবে এই ফান্ডে বিনিয়োগ করতে হলে পুঁজিবাজার সম্পর্কে ন্যূনতম ধারণা থাকা উচিত বলে মনে করেন ডিএসইর পরিচালক রকিবুর রহমান।

আবার পুঁজিবাজারে বিনিয়োগ করতে হলে নতুন বিনিয়োগকারীদের জন্য মিউচ্যুয়াল ফান্ডই ভালো বিকল্প বলে মনে করেন তিনি।

নিউজবাংলাকে রকিবুর রহমান বলেন, ‘নতুন বিনিয়োগকারী যারাই পুঁজিবাজারে আসবে, তাদের আগে ভালো অ্যাসেট ম্যানেজমেন্ট কোম্পানি দেখে মিউচ্যুয়াল ফান্ডের বিনিয়োগ করা উচিত।’

চলতি বছর মিউচ্যুয়াল ফান্ড যে হারে লভ্যাংশ দিয়েছে, একই পরিমাণ মুনাফা করলে আগামী বছর এর চেয়ে বেশি লভ্যাংশ দিতে পারবে। এর কারণ, গত বছর করোনার প্রাদুর্ভাবের পর পুঁজিবাজারে ছোটখাটো ধসের কারণে ফান্ডগুলোর সিংহভাগ বড় অঙ্কের লোকসান দিয়েছে। আর সেই লোকসান এবারের লভ্যাংশ থেকে সমন্বয় করতে হয়েছে তাদের।

আগামী বছর যে মুনাফা হবে, তার পুরোটার ওপর ভিত্তি করে লভ্যাংশ দেয়া হবে। এ ক্ষেত্রে গ্রোথ ফান্ডগুলোকে তাদের আয়ের কমপক্ষে ৫০ শতাংশ আর মিউচ্যুয়াল ফান্ডগুলোকে ৭০ শতাংশ বিতরণ করতে হবে।

তবে এই বিনিয়োগ বরাবরই ঝুঁকিপূর্ণ। কারণ, পুঁজিবাজারের উত্থান-পতন ফান্ডের আয়ের প্রভাব ফেলে। তবে এ ক্ষেত্রে একটি সুবিধা আছে এ কারণে যে, প্রতিটি ফান্ড প্রতি সপ্তাহ শেষে ইউনিটপ্রতি সম্পদমূল্য কত আছে, সেটি প্রকাশ করতে বাধ্য। আর তিন মাস অন্তর তাদের মুনাফা বা লোকসান কত হলো, সেটিও প্রকাশ করে।

এগুলো ছাড়াও ওয়েবসাইটে প্রতিটি ফান্ড কোন কোন শেয়ারে কত টাকা বিনিয়োগ করেছে, সে তথ্য দেয়া থাকে। এগুলো পর্যালোচনা করেও বিনিয়োগকারীরা হিসাব-নিকাশ করতে পারবেন। এ ক্ষেত্রে বিনিয়োগ শিক্ষাটা জরুরি।

আরও পড়ুন:
খেলাপি ঋণ কমাতে পারল ২৮ ব্যাংক, পুঁজিবাজারের ১৮টি
১০ বছর ৭ মাস পর সাত হাজারের হাতছানি
যেখান থেকে পতন, তার কাছাকাছি সূচক, ফের বিমাময় বাজার
পুঁজিবাজার: এবার কেন্দ্রীয় ব্যাংকের নজর বিশেষ তহবিলে
বিমা-বস্ত্রে দারুণ দিন, মিউচ্যুয়াল ফান্ড ধসাল গ্রামীণ টু

শেয়ার করুন