১৪৫ কোটি টাকা খরচের পর প্রকল্প বাতিল

১৪৫ কোটি টাকা খরচের পর প্রকল্প বাতিল

‘এই ঘাটটি আগে থেকেই ব্যবসায়ের একটা কেন্দ্রবিন্দু ছিল। ফেরি চলাচল শুরু হলে এটি আরও প্রসার হতো। কিন্তু সবকিছু নির্মাণ করার পর হঠাৎ করে কেন এটা বলা হচ্ছে যে, ঘাটে ফেরি চলবে না? প্রথমে তো উপযোগী ছিল; কাজ শেষের পর অনুপযোগী হয়ে গেল?’

তিন বছর ধরে নদী খনন করা হয়েছে। দুই পাড়ে নৌ টার্মিনালসহ আরও বেশ কিছু অবকাঠামো নির্মাণ শেষ। এখন শুধু উদ্বোধনের অপেক্ষা। কিন্তু শেষে এসে জানানো হলো, এই নৌপথ ফেরি চলাচলে উপযোগী নয়। প্রকল্প বাতিল। গচ্চা ১৪৫ কোটি টাকা।

বৃহত্তর রংপুর বিভাগের সঙ্গে জামালপুর, ময়মনসিংহ ও সিলেটসহ কয়েক জেলার মানুষের চলাচলে দূরত্ব কমাতে এই নৌরুট চালুর উদ্যোগ। সেই সঙ্গে বঙ্গবন্ধু সেতুর ওপর ঝুঁকি কমানোও ছিল উদ্দেশ্য।

গাইবান্ধার বালাসীঘাট থেকে জামালপুরের বাহাদুরাবাদ পর্যন্ত ফেরি চলাচলে নৌরুট খনন, নদীর দুই পাড়ে টার্মিনালসহ যাবতীয় অবকাঠামো নির্মাণের এই প্রকল্প শুরু হয় ২০১৭ সালে।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআইডব্লিউটিএ) প্রকল্প বাস্তবায়ন করে। প্রকল্পের কাজ শুরু হয়েছিল ১২৪ কোটি ৭৭ লাখ টাকা ব্যয় ধরে। পরবর্তীতে দুই দফা সংশোধনের মাধ্যমে প্রকল্পটির ব্যয় বাড়িয়ে ১৪৫ কোটি ২ লাখ টাকা করা হয়। সময়ও বাড়ানো হয়। গত জুনে প্রকল্পের কাজ শেষ হয়।

উদ্বোধনের আগে সম্প্রতি একটি প্রতিবেদন দিয়েছে বিআইডব্লিউটিএ-এর কারিগরি কমিটি। প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘নাব্যতা-সংকট সম্ভাব্যতা সমীক্ষা ছাড়াই প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এ ছাড়া নদীর যে পরিমাণ ড্রেজিং প্রয়োজন, তার চেয়ে অনেক কম ধরা হয়। প্রকল্প বাস্তবায়নে সমন্বয়হীনতাসহ বেশি দূরত্বের নৌপথ চিহ্নিত করা এবং পূর্ণাঙ্গ সম্ভাব্যতা সমীক্ষা ছাড়াই প্রকল্পের স্থান নিরূপণ করা হয়েছে। নদীর মরফোলজিক্যাল অবস্থা না জেনেই দুই পাড়ে ঘাট নির্মাণ করা হয়। তাছাড়া প্রকল্প শুরুর সঙ্গে সঙ্গে সড়ক বিভাগ রাস্তা নির্মাণকাজ আরম্ভ করেনি।’

বালাসীঘাট-বাহাদুরাবাদ পর্যন্ত দীর্ঘ ২৬ কিলোমিটার এ নৌরুটে ফেরি সার্ভিস চালুর লক্ষ্যে প্রকল্প বাস্তবায়ন শেষ পর্যায়ে এসে কাজের সম্ভাব্যতা যাচাইয়ে একটি ‘কারিগরি কমিটি’ গঠন করে বিআইডব্লিউটিএ।

১৪৫ কোটি টাকা খরচের পর প্রকল্প বাতিল


সংস্থাটির ড্রেজিং বিভাগের তৎকালীন অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী রকিবুল ইসলাম তালুকদারকে প্রধান করে পাঁচ সদস্যের এই কমিটি চলতি বছরের এপ্রিল ও মে মাসে সরেজমিন পরিদর্শন করে সম্প্রতি এই প্রতিবেদন জমা দিয়েছে।

প্রতিবেদনে বালাসীঘাট ও বাহাদুরাবাদের দুই প্রান্তের ফেরিঘাট স্থানান্তর করতে বলা হয়েছে। আর যেসব অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়ে গেছে, তা ভিন্ন কাজে ব্যবহারের সুপারিশ করা হয়েছে।

চলতি বছরের জুনে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন পরিবীক্ষণ ও মূল্যায়ন বিভাগ (সেক্টর-৮) এই প্রকল্পের নিবিড় পরিবীক্ষণ সমীক্ষা প্রতিবেদনে প্রকল্প বাস্তবায়ন সম্পর্কিত কিছু সমস্যা চিহ্নিত করে। সেই প্রতিবেদনের আলোকে পরামর্শক দল প্রকল্প এলাকা পরিদর্শন করে ‘ভৌত কাজের গুণগত মান ও কাজের তদারকির অভাব রয়েছে’ বলে উল্লেখ করে। তাছাড়া প্রকল্পের কাজ শুরু হওয়ার সাথে সাথেই পরিচালনা এবং রক্ষণাবেক্ষণের সমস্ত বাজেট শেষ হয়ে যাওয়া, ভৌত অবকাঠামো নির্মাণে শাটারিং কাজে বাঁশের খুঁটি ব্যবহার করা, শাটারিং ঠিকমতো না হওয়ায় আনসার ব্যারাকের বিমে সঠিকভাবে ঢালাই না হওয়া ইত্যাদি অনিয়ম চিহ্নিত করা হয়।

স্টেকহোল্ডার অ্যানালাইসিস ও সম্ভাব্যতা সমীক্ষা না করা, সমন্বয়হীনতা, ড্রেজিংয়ের পরিমাণ কম হওয়া ও ড্রেজ স্পয়েলের ক্ষেত্রে অব্যবস্থাপনার কথা তুলে ধরে পরামর্শক দল।

এ ছাড়া আরও বলা হয়েছে, প্রয়োজনীয় জনবলের অভাবে তদারকি কাজের ব্যত্যয় পরিলক্ষিত হয়েছে। চলাচলের জন্য নদীর চ্যানেল চালু রাখার বিষয়টি প্রকল্প প্রণয়নের সময়েই চিন্তা করা উচিত ছিল। উজানের নাব্যতা মাথায় রেখে নদীর চ্যানেল নির্ধারণ করা দরকার ছিল। এ ছাড়া নিরাপদ নৌ চলাচল বেসিন ও চ্যানেল নিশ্চিতকরণে অবশ্যই নির্দিষ্ট নৌরুট পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণের দরকার ছিল বলে মনে করে পরামর্শক দল।

এই পথ দিয়ে আবারও ফেরি চলাচল শুরু হবে, এমনটা প্রত্যাশা ছিল বৃহত্তর রংপুর বিভাগসহ কয়েক জেলার মানুষের। এই পথে ফেরি সার্ভিস চালু হলে পণ্য পরিবহনে স্থানভেদে ১০০ থেকে ১৫০ কিলোমিটার দূরত্ব কমে যেত। সেই সঙ্গে বঙ্গবন্ধু সেতুর ওপর সৃষ্ট অতিরিক্ত চাপ কমে আসত।

১৪৫ কোটি টাকা খরচের পর প্রকল্প বাতিল


২০১৭ সালের অক্টোবরে ‘বালাসী ও বাহাদুরাবাদে ফেরিঘাটসহ আনুষঙ্গিক স্থাপনাদি নির্মাণ’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় একনেক সভায় প্রকল্পটি অনুমোদন পায়। ওই সময়ে প্রকল্প ব্যয় ধরা হয় ১২৪ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। এর মেয়াদ ধরা হয় একই বছরের জুলাই থেকে ২০১৯ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত। কিন্তু পরবর্তীতে দুই দফায় প্রকল্প সংশোধন করে ব্যয় বাড়িয়ে ১৪৫ কোটি ২ লাখ টাকা ও ২০২১ সালের জুন পর্যন্ত মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়।

প্রকল্পের আওতায় জমি অধিগ্রহণ, বাস টার্মিনাল, টোল আদায় বুথ, পুলিশ ব্যারাক, ফায়ার সার্ভিস, আনসার ব্যারাক, রেস্টুরেন্ট, মসজিদ, ফেরিঘাট ও ইন্টারনাল রোডসহ বেশ কিছু স্থাপনা নির্মাণ করা হয়। ফেরি চলাচলে নদী ড্রেজিংকাজও সম্পন্ন হয়।

১৯৩৮ সালে ঢাকার সঙ্গে দেশের উত্তরাঞ্চলের রেল যোগাযোগ বৃদ্ধির লক্ষ্যে গাইবান্ধা জেলার ফুলছড়ি উপজেলায় তিস্তামুখঘাট ও জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জের বাহাদুরাবাদ ঘাটে যমুনা নদীতে রেল ফেরি সার্ভিস চালু করা হয়। তৎকালীন রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ ঢাকা, চট্টগ্রাম এবং বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলার জামালপুর, শেরপুর, নেত্রকোনা ও কিশোরগঞ্জ জেলার সঙ্গে উত্তরাঞ্চলের বৃহত্তর রংপুর জেলার গাইবান্ধা, কুড়িগ্রাম, লালমনিরহাট, নীলফামারী, দিনাজপুর, পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও জেলাসহ বিভিন্ন অঞ্চলের মধ্যে যাত্রী ও মালামাল পারাপারের জন্য যোগাযোগ গড়ে তুলতে এ ফেরি সার্ভিসটি চালু করে। এরপর থেকেই এ ঘাট দিয়ে স্বল্পব্যয়ে অল্প সময়ে যাত্রী পারাপার, কৃষিপণ্য, ডিজেল, সার সরবরাহসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় মালামাল পরিবহন করা হতো। ১৯৯০ সালের পর যমুনা নদীর নাব্যতা-সংকটের কারণে ফেরি সার্ভিসটি তিস্তামুখঘাট থেকে বালাসীঘাটে স্থানান্তর করা হয়।

পরবর্তীতে ‘বঙ্গবন্ধু সেতু’ চালু হওয়ার পর এসব জেলার মানুষের যাতায়াতে ভোগান্তি কমে যায়। সড়ক পথে দূরত্ব কমায় অর্ধেকের কম ভাড়ায় ঢাকার সঙ্গে এসব জেলার যাতায়াতের সুযোগ সৃষ্টি হয়। পরে ২০০৫ সালের ১৫ জুন গাইবান্ধার বালাসীঘাট ও জামালপুরের বাহাদুরাবাদ নৌরুটে বন্ধ হয়ে যায় ফেরি চলাচল।

সেই থেকে এই পথে শ্যালো ইঞ্জিনচালিত ছোট-বড় নৌকাই কম দূরত্বে যাতায়াতের একমাত্র মাধ্যম হয়ে দাঁড়ায়। যমুনার পূর্ব-পশ্চিমপাড়ের লাখ লাখ মানুষ প্রতিদিন এ নৌপথে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করে আসছে। এতে করে চরাঞ্চলের বাসিন্দাদের পণ্য পরিবহন ও চিকিৎসাসেবাসহ যেকোনো প্রয়োজনে যাতায়াতে নৌকায় গুনতে হচ্ছে বেশি ভাড়া।

ফেরিঘাট বাতিলের এই সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন জেলার রাজনৈতিকসহ সামাজিক আন্দোলনের নেতারা। তারা বলেন, এই সিদ্ধান্ত হঠকারিতা ও সরকারের অর্থ অপচয় এবং জনগণের সঙ্গে প্রতারণার শামিল। তদন্তসহ জড়িতদের বিচারের দাবিও জানান তারা।

১৪৫ কোটি টাকা খরচের পর প্রকল্প বাতিল


এ নিয়ে বালাসীঘাট এলাকার বাসিন্দা শাওন বিশ্বাস বলেন, ‘জেলাবাসীর একটা আশা ছিল, এখানে ইনপুট-আউটপুটের ভালো ব্যবসা হবে। কিন্তু এখন তো দেখা যাচ্ছে অন্যটা। এত টাকা ইনভেস্ট করে যদি ফেরিই না চলে, তাহলে কাজ করার কী দরকার ছিল।’

ঘাটে ঘুরতে আসা সোহেল রানা বলেন, ‘এই ঘাটটি আগে থেকেই ব্যবসায়ের একটা কেন্দ্রবিন্দু ছিল। ফেরি চলাচল শুরু হলে এটি আরও প্রসার হতো। কিন্তু সবকিছু নির্মাণ করার পর হঠাৎ করে কেন এটা বলা হচ্ছে যে, ঘাটে ফেরি চলবে না? প্রথমে তো উপযোগী ছিল; কাজ শেষের পর অনুপযোগী হয়ে গেল?’

শিক্ষার্থী রায়হান কবির বলেন, ‘ফেরি ঘাটের কাজ শুরুর পর অনেকেই ব্যবসায় অনেক ইনভেস্ট করেছেন। এখন যদি এটা চালু না হয়, তাহলে তো অনেক বড় ক্ষতির মুখে পড়বেন এসব ব্যবসায়ী।’

এ বিষয়ে গাইবান্ধা নাগরিক মঞ্চের সদস্যসচিব অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম বাবু বলেন, ‘আমরা খুবই আশাহত হয়েছি। এই প্রকল্প বাস্তবায়নে যে রাষ্ট্রীয় অর্থ ব্যয় করা হয়েছে, তা লুটপাট ও জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করা হয়েছে। প্রকল্প শুরুর আগে অবশ্যই পরিকল্পনা করেই ফেরি ঘাট নির্মাণ করা হয়েছে। শেষ সময়ে এসে বন্ধের সিদ্ধান্ত বাংলাদেশের জনগণের সাথে প্রতারণার শামিল।’

জেলা সামাজিক সংগ্রাম পরিষদের আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর কবীর তনু বলেন, ‘আমরা জানতে পেরেছি, নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় থেকে এখানে একটা স্ট্যাডি করে ভুল পরিসংখ্যান দিয়েছে। প্রকল্পের সমস্ত কাজ শেষ করার পর তাদের বোধোদয় হয়েছে - এই রুটে ফেরি চলাচল সম্ভব নয়। কারিগরি কমিটির এই প্রতিবেদনে ত্রুটি রয়েছে।’

এ বিষয়ে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এক সাক্ষাৎকারে বলেন, ‘বিকল্প কয়েকটি জায়গা আছে; যাতে রুটটি কমিয়ে আনা যায়। সেই জায়গা স্টাডি করে অন্তত একটি ফেরি ওই রুটে চালু করার চেষ্টা করছি। সেটি স্থায়ী না হলে সেখানে বিকল্প হিসেবে লঞ্চ ও স্পিডবোট চালুর উদ্যোগ নেয়া হবে।’

শেয়ার করুন

মন্তব্য

‘বউয়ের দোয়া পরিবহন’ নিয়ে আলোচনায় অবিবাহিত মাসুম

‘বউয়ের দোয়া পরিবহন’ নিয়ে আলোচনায় অবিবাহিত মাসুম

পেছনে বউয়ের দোয়া পরিবহন লেখা একটি ইজিবাইক। ছবি: নিউজবাংলা

মাসুম বলেন, “ইজিবাইকগুলো কেনার পর যে নামই রাখতে চেয়েছি, পরে দেখছি ওই নামে কোনো না কোনো পরিবহন রয়েছে। আসলে প্রতিটি ব্যবসায় ব্র্যান্ডিং খুব গুরুত্বপূর্ণ। তাই বন্ধু ও স্বজনদের সঙ্গে আলাপ করে ‘বউয়ের দোয়া পরিবহন’ নাম রেখেছি।”

মায়ের দোয়া, বাবার দোয়া, বাবা-মায়ের দোয়া- এমন নামের পরিবহনের সঙ্গে পরিচিত সবাই। তবে ‘বউয়ের দোয়া পরিবহন’ এ দেশে বিস্ময়করই বটে।

ব্যতিক্রমী কাজটি করেছেন চুয়াডাঙ্গার মাসুম মিয়া। নিজের মালিকানায় থাকা ইজিবাইকগুলোর পেছনে লিখেছেন ‘বউয়ের দোয়া পরিবহন’। মজার বিষয় হলো, মাসুম এখনও বিয়েই করেননি। বিষয়টি বেশ সাড়া ফেলেছে চুয়াডাঙ্গা শহরে।

চুয়াডাঙ্গা পৌর এলাকার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের মসজিদপাড়ার শেখ সুলতানের ছেলে মাসুম। চার ভাই-বোনের মধ্যে সবার ছোট তিনি। ১২ বছর মালয়েশিয়ায় শ্রমিক হিসেবে কাজ করেছেন। গত বছরের ডিসেম্বরে দেশে ফেরেন তিনি। মালয়েশিয়ায় থাকা অবস্থায় সঞ্চয় করা টাকা দিয়ে কিনেছেন ১১টি ইজিবাইক।

মাসুম মিয়া জানান, তার মালিকানাধীন ১১টি ইজিবাইক ‘বউয়ের দোয়া পরিবহন’ নামে চুয়াডাঙ্গা শহরে চলাচল করছে। তিনি নিজে একটি চালান। বাকিগুলো ভাড়া দিয়েছেন।

অবিবাহিত হয়েও ইজিবাইকের পেছনে কেন ‘বউয়ের দোয়া পরিবহন’ লিখেছেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, “ইজিবাইকগুলো কেনার পর যে নামই রাখতে চেয়েছি, পরে দেখছি ওই নামে কোনো না কোনো পরিবহন রয়েছে। আসলে প্রতিটি ব্যবসায় ব্র্যান্ডিং খুব গুরুত্বপূর্ণ। তাই বন্ধু ও স্বজনদের সঙ্গে আলাপ করে ‘বউয়ের দোয়া পরিবহন’ নাম রেখেছি।”

বিদেশে থাকায় বয়স হওয়ার পরও বিয়ে করতে পারেননি জানিয়ে তিনি বলেন, ‘বাবা-মায়ের পছন্দের পাত্রীকে খুব শিগগির বিয়ে করে নতুন জীবন শুরু করব। বিদেশ যাওয়ার আর কোনো ইচ্ছা নেই। বিয়ে করে বাবা-মা ও স্ত্রীকে নিয়ে বাকি জীবন দেশে কাটিয়ে দিতে চাই।’

মা-বাবার পর বউ হলো সবচেয়ে আপন ও ভালোবাসার মানুষ। বিয়ের পর সংসারের ভালোমন্দ বউই দেখাশোনা করবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ভিন্ন নামের পরিবহনটি চুয়াডাঙ্গা শহরে তাকে আলাদা পরিচিতি এনে দিয়েছে জানিয়ে মাসুম বলেন, ‘বর্তমানে আমার মালিকানাধীন ১১টি ইজিবাইক থেকে যে টাকা আয় হয়, তা দিয়ে বাবা-মাকে নিয়ে খুব ভালোমতো চলে সংসার। বাড়তি টাকা সঞ্চয়ও করি।’

শেয়ার করুন

যুবলীগ নেতা তাপস হত্যা: মেয়রসহ ৩৬ আসামি বহাল

যুবলীগ নেতা তাপস হত্যা: মেয়রসহ ৩৬ আসামি বহাল

পটুয়াখালীর মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালত। ছবি:সংগৃহীত

বাদীপক্ষের আইনজীবী কমল দত্ত জানান, রোববার শুনানি শেষে আদালত চার্জশিটভুক্ত ৩৬ আসামির নামেই মামলা পরিচালনার নির্দেশ দেন। বিচারক আদেশে উল্লেখ করেন, এরই মধ্যে যেসব আসামি জামিনে আছেন, তাদের জামিন বহাল থাকবে। আর যেসব আসামি আদালতে অনুপস্থিত বা অনুপস্থিত থেকে সময়ের আবেদন করেছেন তাদের বিরুদ্ধে সমন জারি করা হয়েছে।

পটুয়াখালীর বাউফলে যুবলীগ নেতা তাপস হত্যা মামলায় জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বাউফল পৌরসভার মেয়র জিয়াউল হক জুয়েলসহ ৩৬ আসামির নাম বহাল রাখার নির্দেশ দিয়েছে আদালত।

বাদীর নারাজি পিটিশনের শুনানি শেষে রোববার পটুয়াখালীর অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম আল আমিন এজাহারভুক্ত সব আসামির নাম অন্তর্ভুক্ত করে মামলার কার্যক্রম পরিচালনার নির্দেশ দেন।

বাদীপক্ষের শুনানিতে অংশ নেয়া অ্যাডভোকেট কমল দত্ত জানান, যুবলীগ নেতা তাপস হত্যা মামলার তদন্ত করে ২৮ জুলাই পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) পরিদর্শক মতিন খান ২০ আসামির বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশিট দেন।

মামলার বাদী পঙ্কজ দাস ১৯ সেপ্টেম্বর আদালতে ওই চার্জশিটের বিরুদ্ধে নারাজি পিটিশন দেন।

রোববার শুনানি শেষে আদালত চার্জশিটভুক্ত ৩৬ আসামির নামেই মামলা পরিচালনার নির্দেশ দেন।

কমল দত্ত আরও জানান, শুনানির পর বিচারক আদেশে উল্লেখ করেন, এরই মধ্যে যেসব আসামি জামিনে আছেন, তাদের জামিন বহাল থাকবে। আর যেসব আসামি আদালতে অনুপস্থিত বা অনুপস্থিত থেকে সময়ের আবেদন করেছেন তাদের বিরুদ্ধে সমন জারি করা হয়েছে। তবে অনুপস্থিত আসামিরা যদি হাইকোর্টে আবেদন করে থাকেন, আর যদি সে আবেদন পেন্ডিং থাকে, সে ক্ষেত্রে তাদের বিরুদ্ধে সমন ইস্যু হবে না।

তিনি বলেন, ‘মামলার আসামি বাউফল পৌরসভার মেয়র জিয়াউল হক জুয়েল আজ নারাজি শুনানিতে হাজির না হয়ে সময়ের আবেদন করেছেন। তিনি হাইকোর্টে আবেদন করেছেন কি না তা যাচাই করে দেখতে হবে।’

এ ব্যাপারে মেয়র জিয়াউলের মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

মামলার বাদী পঙ্কজ দাস জানান, ২০২০ সালের ২৪ মে বাউফল থানার সামনে তোরণ নির্মাণকে কেন্দ্র করে দুই গ্রুপের সংর্ঘষে যুবলীগ নেতা তাপস ছুরিকাহত হন। রাতে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে তাপস মারা যান।

পরদিন বাউফল পৌরসভার মেয়র জিয়াউল হক জুয়েলসহ ৩৬ জনকে আসামি করে বাউফল থানায় মামলা করেন তাপসের ভাই পঙ্কজ দাস।

পঙ্কজ দাস বলেন, ‘আজ আদালতের নির্দেশ শুনে ভালো লাগছে। মনে হচ্ছে ন্যায়বিচার পাব।’

আসামিপক্ষের আইনজীবী মুজাহিদ জাহিদ হোসেনের সঙ্গে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হয়েছে, তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

শেয়ার করুন

চবি ক্যাম্পাসে মঙ্গলবার থেকে টিকাদান

চবি ক্যাম্পাসে মঙ্গলবার থেকে টিকাদান

প্রক্টর বলেন, ‘হাটহাজারী স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কথা বলে প্রায় ১ হাজার ডোজ টিকা আমাদের ক্যাম্পাসে নেয়ার ব্যবস্থা হয়েছে। সব শিক্ষার্থীর টিকার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে আবেদন জানানো হয়েছে। সেগুলো পেয়ে গেলে সবাইকে টিকা দেয়া হবে।’

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের (চবি) যারা করোনাভাইরাসের টিকাকেন্দ্র হিসেবে হাটহাজারী স্বাস্থ্যকেন্দ্র নির্বাচন করেছেন তারা টিকা পেতে যাচ্ছেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিক্যাল সেন্টারে মঙ্গলবার থেকে টিকার রেজিস্ট্রেশন কার্ড দেখিয়ে তারা টিকা নিতে পারবেন।

প্রক্টর ড. রবিউল হাসান ভুঁইয়া নিউজবাংলাকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে যারা টিকার জন্য হাটহাজারী কেন্দ্র নির্বাচন করে রেজিস্ট্রেশন করেছেন, তাদের মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টা থেকে প্রথম ডোজ টিকা দেয়া হবে।

টিকার জন্য সবাইকে রেজিস্ট্রেশন কার্ডের দুই কপি নিয়ে যেতে হবে। তারা চীনের তৈরি সিনোফার্ম টিকা পাবেন।

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের করোনা প্রতিরোধী টিকা নিশ্চিতে ৪৮ হাজার টিকা চেয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয়টির উপাচার্য অধ্যাপক ড. শিরীণ আখতার। শিক্ষার্থীরা যেন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে টিকা নিতে পারেন সেই উদ্যোগও নেয় কর্তৃপক্ষ।

প্রক্টর বলেন, ‘হাটহাজারী স্বাস্থ্যকেন্দ্রে কথা বলে প্রায় ১ হাজার ডোজ টিকা আমাদের ক্যাম্পাসে নেয়ার ব্যবস্থা হয়েছে। সব শিক্ষার্থীর টিকার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে আবেদন জানানো হয়েছে। সেগুলো পেয়ে গেলে সবাইকে টিকা দেয়া হবে।’

এই বিশ্ববিদ্যালয়ের মোট শিক্ষার্থী ২৭ হাজার ৫৫০। বিশ্ববিদ্যালয়কে দেয়া জরিপের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, ১৩ হাজার ৩৩৬ শিক্ষার্থী টিকা গ্রহণের জন্য সার্বিক তথ্য কর্তৃপক্ষকে দিয়েছেন।

এর মধ্যে এক ডোজ টিকা নিয়েছেন এমন শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২ হাজার ২৬৭। দুই ডোজ নিয়েছেন ৪ হাজার ১৩৪ জন। নিবন্ধন করে টিকার জন্য অপেক্ষারত ৪ হাজার ৪০০ জন। এনআইডি না থাকায় টিকা নিতে পারেননি এমন শিক্ষার্থী ২ হাজার ২৬৭ জন।

পরীক্ষার কারণে বাড়ি থেকে ক্যাম্পাসে চলে আসায় অনেক শিক্ষার্থী টিকার দ্বিতীয় ডোজ পাননি। তাদের বিষয়ে প্রক্টর বলেন, ‘তাদের বিষয়টাও আমরা স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও ইউজিসিতে জানিয়েছি। তবে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

শেয়ার করুন

স্কুলছাত্রীর ‘আপত্তিকর’ ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ায় মামলা

স্কুলছাত্রীর ‘আপত্তিকর’ ভিডিও ছড়িয়ে দেয়ায় মামলা

প্রতীকী ছবি

পাথরঘাটা থানার ওসি আবুল বাশার জানান, ওই স্কুলছাত্রীর মা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দুই কিশোরের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। তবে ওই দুই কিশোর পলাতক।

বরগুনার পাথরঘাটায় জোর করে এক স্কুলছাত্রীর ‘আপত্তিকর’ ভিডিও ধারণ করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে মামলা হয়েছে তারই দুই সহপাঠীর বিরুদ্ধে।

পাথরঘাটা থানায় রোববার দুপুরে ওই ছাত্রীর মা মামলাটি করেন। এতে আসামি করা হয়েছে ওই শিক্ষার্থীর দুই ছেলে সহপাঠীকে।

আসামি এক কিশোরের বাড়ি পাথরঘাটা সদর ইউনিয়নে। অপরজনের বাড়ি পৌরশহরে। ভুক্তভোগী কিশোরী ও মামলার আসামিরা স্থানীয় একটি বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির শিক্ষার্থী।

মামলার এজাহার থেকে জানা যায়, আসামি দুই কিশোরের একজন ওই ছাত্রীকে দীর্ঘদিন ধরে উত্যক্ত করে আসছিল। এ নিয়ে গত বছর ওই কিশোরের পরিবারের কাছে অভিযোগ করেও কোনো সমাধান পাওয়া যায়নি।

গত বুধবার স্কুল ছুটির পর ওই ছাত্রীর স্কুলব্যাগ নিয়ে নেয় উত্যক্তকারী কিশোর। পরে ব্যাগ আনতে গেলে সে ওই ছাত্রীর সঙ্গে অসম্মানজনক আচরণ করে। আসামি অন্য কিশোর সেই দৃশ্য মোবাইলে ধারণ করে।

এজাহারে আরও বলা হয়, গত শুক্রবার ওই ভিডিও ফেসবুক ও টিকটকে ছড়িয়ে দেয়া হয়। বিষয়টি জানতে পেরে ওই ছাত্রীর মা স্কুলের প্রধান শিক্ষকের কাছে অভিযোগ করেন। প্রধান শিক্ষক অভিযুক্ত কিশোরদের পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। সেদিন রাত ৯টার দিকে তিনি বিষয়টি পাথরঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল বাশারকে জানান।

পরে পুলিশ খোঁজখবর নিয়ে রোববার দুপুরে আইনি সহযোগিতা দেয়ার জন্য ছাত্রীর মাকে থানায় ডাকে।

পাথরঘাটা থানার ওসি আবুল বাশার জানান, ওই স্কুলছাত্রীর মা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ও ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দুই কিশোরের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন। তবে ওই দুই কিশোর পলাতক।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (পাথরঘাটা-বামনা সার্কেল) তোফায়েল হোসেন সরকার বলেন, ‘ভিক্টিমকে সুরক্ষা দিয়ে আমরা তাকে বিচার পেতে আইনি সহযোগিতা নিশ্চিতের ব্যবস্থা করব।’

শেয়ার করুন

তদন্ত প্রতিবেদনে নেই প্রধান আসামি, বাদীকে ‘হুমকি’

তদন্ত প্রতিবেদনে নেই প্রধান আসামি, বাদীকে ‘হুমকি’

বেগমগঞ্জে হামলার ঘটনায় মামলার প্রধান আসামি জাহাঙ্গীর আলমকে বাদ দিয়ে তদন্ত প্রতিবেদন দিয়েছে সিআইডি। ছবি: সংগৃহীত

মামলার বাদী মোশারফ জানান, প্রতিবেদন থেকে নাম বাদ দেয়ার পর মামলার প্রধান আসামি জাহাঙ্গীর তাদের দেখে নেয়ার হুমকি দিয়ে আসছেন। তারা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

নোয়াখালীর বেগমগঞ্জের মহবুল্লাপুর গ্রামে চাঁদা না পেয়ে হামলার ঘটনায় মামলার প্রধান আসামি জাহাঙ্গীর আলমকে বাদ দিয়ে তদন্ত প্রতিবেদন দেয়া হয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, আসামির হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন বাদী মোশারফ হোসেন রতন ও সাক্ষীরা।

বাদী ও সাক্ষীরা জানান, মামলার তদন্তে সিআইডির কর্মকর্তাকে হামলার ঘটনায় জাহাঙ্গীরের জড়িত থাকার বিষয়টি তারা বর্ণনা করেছেন। তার পরও সিআইডির তদন্ত প্রতিবেদন থেকে জাহাঙ্গীরের নাম বাদ দেয়া হয়েছে।

মোশারফ বলেন, ‘পল্লী চিকিৎসক জাহাঙ্গীর আলম আমার কাছে পাঁচ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা না দেয়ায় ২০১৯ সালের ২০ জানুয়ারি আমার বাড়িতে তিনি হামলা চালান। ওই ঘটনায় আমি নোয়াখালীর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে পাঁচজনকে আসামি করে হত্যাচেষ্টা ও চাঁদাবাজির মামলা করি।

আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে প্রথমে পুলিশ ব্যুরো অফ ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) তদন্ত করে প্রতিবেদন দেয়ার নির্দেশ দেয়। পিবিআইয়ের তদন্ত প্রতিবেদনে জাহাঙ্গীরকে ঘটনার সঙ্গে জড়িত নয় দেখিয়ে তার স্বভাব-চরিত্র ভালো নয় বলে উল্লেখ করা হয়। পক্ষপাত হয়েছে মনে করে বাদী পিবিআইয়ের প্রতিবেদনে অনাস্থা দেন আদালতে। আদালত অধিকতর তদন্ত করে প্রতিবেদন দিতে মামলাটি পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগে (সিআইডি)পাঠায়।

২০২০ সালের ২০ অক্টোবর সিআইডি মামলাটির তদন্তের দায়িত্ব নিয়ে ২০২১ সালের ১৪ জুন আদালতে প্রতিবেদন দেয়। ওই প্রতিবেদনেও জাহাঙ্গীরকে বাদ দেয়া হয়। মামলার অপর আসামি জিকু কামাল, খোরশেদ আলম, অজি উল্যাহ ও সেকান্দর আলমের সঙ্গে মীর হোসেন আলী বাবু, মো. হাসিব ও আবদুল্ল্যা আল নোমানের নাম যুক্ত করে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেয়া হয়। সিআইডি প্রতিবেদনেও প্রধান আসামি জাহাঙ্গীরের নাম বাদ দেয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন মামলার বাদী মোশারফসহ সাক্ষীরা।

সাক্ষী জান্নাতুল নাঈম, সালমা আক্তার, সিদরাতুল মুনতাহা সিনহা, নাজমা আকতার, শাহ জাহান সাজু, আনোয়ার পারভেজ ও হাফেজ দীন ইসলাম জানান, তদন্তকালে প্রথম দিন তাদের বাড়িতে যান সিআইডির পুলিশ সুপার বশির আহম্মদ ও তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আবু নোমান। পরে একাধিকবার এসআই আবু নোমান বাড়ি গিয়ে তদন্ত চালান। পুরো ঘটনাটি জাহাঙ্গীর ঘটালেও প্রতিবেদনে তার নাম নেই।

মোশারফ জানান, মামলার সব সাক্ষী জবানবন্দিতে প্রধান আসামি জাহাঙ্গীরের অপরাধের বিবরণ দিয়েছেন। এর পরও প্রতিবেদনে নাম না থাকায় সিআইডির তদন্তের প্রতি তিনি পূর্ণ আস্থা রাখতে পারছেন না।

মোশারফ ও সাক্ষীরা জানান, প্রতিবেদন থেকে নাম বাদ দেয়ার পর জাহাঙ্গীর তাদের দেখে নেয়ার হুমকি দিয়ে আসছেন। এ হুমকিতে তারা চরম নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন।

জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ‘এ ঘটনার সঙ্গে আমি জড়িত নই, তা গোয়েন্দা সংস্থার তদন্তে প্রমাণ হয়েছে। আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে। আমি কাউকে হুমকি দিইনি।’

সিআইডির কর্মকর্তা বশির আহম্মদ বলেন, ‘এ ঘটনায় অধিকতর তদন্তের মাধ্যমে চেষ্টা করেছি সব আসামির অপরাধের সঠিক তথ্য তুলে ধরতে। সাক্ষ্যপ্রমাণ পর্যালোচনা করে তদন্ত প্রতিবেদন দিয়েছি। মামলার বাদী যদি মনে করেন প্রতিবেদন সঠিক হয়নি, তাহলে তিনি আদালতে নারাজি দিতে পারেন।’

শেয়ার করুন

‘মুন্না আমাকে বাঁচাও, আমাকে মারি দিচে’

‘মুন্না আমাকে বাঁচাও, আমাকে মারি দিচে’

রংপুরে মাদকসেবীর ছুরিকাঘাতে নিহত এএসআই পিয়ারুল ইসলাম। ছবি: নিউজবাংলা।

শুক্রবার রাত ১১টার দিকে হারাগাছ থানা এলাকার বাহারকাছনা তেলিপাড়ায় মাদকসেবীর ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন পুলিশের এএসআই পেয়ারুল। শনিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

টাকার জন্য শ্বশুরবাড়ি যাওয়ার সময় থানা থেকে বন্ধু রংপুর মেট্রোপলিটন হারাগাছ থানার সহকারী উপপুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) পেয়ারুল ইসলামকে নিয়ে গিয়েছিলেন মুন্না। শ্বশুরবাড়ি রংপুরের বাহারকাছনা তেলিপাড়ায় যখন পৌঁছান তখন রাত ১১টা।

মূল সড়কের কাছেই বাড়িটি। সেখানে যাওয়ার রাস্তায় তখন মাদক সেবন করছিলেন পারভেজ রহমানসহ কয়েকজন। সেই দৃশ্য দেখে সেখানে দাঁড়িয়ে যান এএসআই পেয়ারুল; মুন্না যান শ্বশুরবাড়ি।

বাড়িতে না ঢুকে দরজা থেকেই স্ত্রী মনিকার কাছে টাকা চান মুন্না। এর একটু পরই তিনি পেয়ারুলের চিৎকার শোনেন, ‘মুন্না আমাকে বাঁচাও, আমাকে মারি দিচে’।

তখনই সবাই দৌড়ে এসে দেখেন পেয়ারুলকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে।

রংপুরে মাদক কারবারির ছুরিকাঘাতে পুলিশ কর্মকর্তা পেয়ারুল ইসলাম নিহতের ঘটনার এমন বর্ণনা দিয়েছেন মুন্নার শাশুড়ি লাইলী বেগম। প্রত্যক্ষদর্শী এবং পেয়ারুলের বরাত দিয়ে সাংবাদিকদের ঘটনার পূর্ণ বিবরণ দেন তিনি।

লাইলী বেগম বলেন, ‘পেয়ারুল আমার জামাই মুন্নার বন্ধু। নিয়মিত ওঠাবসা, যায়-আসে, খাইদাই করে। ওই দিন পেয়ারুল ছিল থানায়। মুন্না তখন বলছিল, টাকা লাগবে, আমি শ্বশুরবাড়ি যাব। পরে থানাত পেয়ারুলসুদ্ধে খাওয়া-দাওয়া করছে। পরে আমার জামাই আর পেয়ারুল একসাথে আসছে।

‘পেয়ারুল বাসায় না ঢুকি ওখানে (বাড়ির কাছে) কয়টা চ্যাংড়া (ছেলে) গাঞ্জা খাইতেছে ওখানে দাঁড়াইচে। ততক্ষণে আমার জামাই আমার কাছে আসছে, বাসায় ঢোকে নাই। ওই সময় ওই ছেলেটার (গ্রেপ্তার পারভেজ) সাথে কথা-কাটাকাটি হইচে।’

পেয়ারুলের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, ‘ওই সময় পেয়ারুল ওই ছেলেটাক কইছে, তুমি এখানে কী করো..। কেন বসি আছ, নেশা খাও কেন, এই নিয়ে কথা-কাটাকাটি হইচে। এরপর পেয়ারুল ধরছে আরকি ছেলেটাকে। মানে কোমরের বেল্ট ধরছে, ওকে চেক করবে যে তার কাছে আরও কিছু আছে নাকি।’

‘ছেলেটা কইছিল ছাড়ি দেন। পেয়ারুল যে ছাড়ি দেয় না, তখন পেয়ারুল চড়-থাপ্পড় মারছে আর কইছে এই বয়সে নেশাটেশা করো। বেয়াদব ছেলে, এইলে কথা কইছে।’

লাইলী বেগম আরও বলেন, ‘পেয়ারুল ভালো করি ধরছে তো...। এই সময় মোবাইল বের করার কথা কয়া ছেলেটা চাকু বের করে মারি দিচে। পালাবার চেষ্টা করছে তয় পারে নাই।

‘আমার জামাই তখন আমার বাড়ির সামনে দাঁড়ায়ে আছে। বেটিক ডাকে টাকা চাইতেছে... তখনই পেয়ারুল কইছে ‘মুন্না আমাকে বাঁচাও, আমাকে মারি দিচে’। অ্যাই (মুন্না) ফির দৌড়ি গেইচে। হামার বেটি ফির দৌড়ি যায়া দেখে পেয়ারুলের গাতও (শরীর) রক্ত, হামার জামাইয়ের গাতও রক্ত।

লাইলী বেগম জানান, পোশাকের কারণে তারা বুঝতে পারেননি পেয়ারুল কতটা আহত। পরে বাসায় নেয়ার পর পেয়ারুল গামছা দিয়ে তার পেটে ছুরিকাঘাতের স্থানটি বেঁধে নেন। এরপর পুলিশ আসার কিছুক্ষণ পরই তিনি অচেতন হয়ে পড়েন। পুলিশ পেয়ারুলকে নিয়ে যাওয়ার পর তারা জানতে পারেন, তিনি মারা গেছেন।

ঘটনার একই বর্ণনা দেন তেলিপাড়া গ্রামের আলফাজ আলী। তিনি বলেন, ‘ওমরা (লাইলী) যা কইছে ওইলে ঘটনাই হয়।’

হারাগাছ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সওকত আলী সরকার জানান, রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের তৃতীয় বর্ষপূর্তি উপলক্ষে মাদকবিরোধী অভিযান চলছে। পেয়ারুল সাদা পোশাকে সেই অভিযানেই ছিলেন। অভিযানে যাওয়ার আগে থানায় আবশ্যকীয় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করেন।

রংপুর মেট্রোপলিটনের উপপুলিশ কমিশনার আবু মারুফ হোসেন (অপরাধ) নিউজবাংলাকে বলেন, ‘যে ঘটনাটি ঘটেছে সেটি পুলিশের ওপর কোনো পরিকল্পিত আক্রমণ নয়। তাৎক্ষণিক একটা পরিস্থিতির কারণে সে (আসামি) হয়তো নিজেকে বাঁচানোর জন্য বা পুলিশের কাছ থেকে পালানোর জন্য কাজটা করেছে। যে অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে তা উদ্ধার করা হয়েছে। এই ঘটনাকে আমরা থ্রেট মনে করছি না।’

পুলিশের এই শীর্ষকর্তা আরও বলেন, ‘এই ঘটনায় আমরা শোকাহত ঠিকই, কিন্তু আমাদের মনোবল ভেঙে যায়নি। কারণ বাংলাদেশ পুলিশের প্রতিটি সদস্য অত্যন্ত পেশাদার। আমরা সব সময় চ্যালেঞ্জিং কাজ করছি।’

এর আগে শুক্রবার রাত ১১টার দিকে হারাগাছ থানা এলাকার বাহারকাছনা তেলিপাড়ায় মাদকসেবীর ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হন পুলিশের এএসআই পেয়ারুল। শনিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়।

পেয়ারুল ২০১১ সালে পুলিশের কনস্টেবল হিসেবে বাহিনীতে যোগ দেন। ২০১৮ সালে এএসআই হিসেবে পদোন্নতি পেয়ে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের হারাগাছ থানায় যোগ দেন। তার বাড়ি কুড়িগ্রামের রাজারহাট উপজেলায়।

শেয়ার করুন

প্রতিমার সঙ্গেই ভারত পালের ৫০ বছর

প্রতিমার সঙ্গেই ভারত পালের ৫০ বছর

প্রতিমার সঙ্গেই ভারত পালের ৫০ বছর। ছবি: নিউজবাংলা।

প্রতিমা শিল্পী ভারত পাল বলেন, ‘ছোটবেলায় বাবার কাছে প্রতিমা তৈরির কাজ শেখা। প্রতিমা তৈরি আমার আত্মার সঙ্গে মিশে আছে। মনের আবেগ আর ভালোবাসা দিয়েই কাজটি করি।’

‘বুঝতে শেখার পরই প্রতিমার সঙ্গে পথ চলা শুরু। হাতেখড়ি বাবার হাতে। ১০ বছর বয়স থেকেই প্রতিমা তৈরি করি। নিখুঁতভাবে মনের মাধুরী মিশিয়ে প্রতিমা তৈরি করতেন বাবা। যখন প্রতিমা বানানো শেখাতেন মনোযোগ দিয়ে শুনতাম ও দেখতাম। নিজেও এখন এরকম বানাতে পারি।’

কথাগুলো বলছিলেন টাঙ্গাইলের বাসাইল উপজেলার রাশড়া গ্রামের ভারত পাল।

৫০ বছর ধরে জেলার বিভিন্ন এলাকায় তৈরি করছেন প্রতিমা। শিল্পীর ছোঁয়ায় তৈরি করছেন দেবী দুর্গাকে।

কয়েক দিন বাদেই আসছেন দেবী। তাই বেশ ব্যস্ত ভারত। দুর্গার পাশাপাশি চলছে লক্ষ্মী, স্বরস্বতী, গণেশ ও কার্তিকের প্রতিমা তৈরির কাজ।

১১ অক্টোবর ষষ্ঠী পূজার মধ্যে দিয়ে শুরু হবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় শারদীয় দুর্গোৎসব।

সরেজমিন দেখা যায়, কোনো মণ্ডপে হচ্ছে কাঠামো তৈরি আবার কোথাও হচ্ছে মাটির কাজ। শিল্পীরা দেড় মাস আগে থেকেই শুরু করেন প্রতিমা তৈরির কাজ।

প্রতিমার সঙ্গেই ভারত পালের ৫০ বছর

প্রতিমা শিল্পী ভারত পাল বলেন, ‘প্রতিমা তৈরি আমার আত্মার সঙ্গে মিশে আছে। মনের আবেগ আর ভালোবাসা দিয়েই কাজটি করি।

‘৫০ বছর থেকে প্রতিমার সঙ্গে কাটছে জীবন। চলতি বছর এখন পর্যন্ত ১৪টি প্রতিমা তৈরির কাজ চলছে।’

এ বছর প্রতিমা তৈরির সরঞ্জামের দামটাও আগের চেয়ে বেশি বলে জানান ভারত পাল।

রাশড়া গ্রামের যাদব পাল জানান, ভারত ছোট থেকে প্রতিমা তৈরির কাজ করছে। বাসাইল ছাড়াও পাশের উপজেলা সখীপুরে প্রতিমা তৈরিতে ভারতের সুনাম রয়েছে।

উপজেলার জিকাতলী পাড়া গ্রামের শীতল চক্রবর্তী বলেন, ‘আমি মাঝে মাঝে কাকার প্রতিমা তৈরি দেখতে যেতাম। যতই দেখতাম কাকার দিকে মুগ্ধ হয়ে তাকিয়ে থাকতাম। কী অসাধারণ, নিখুঁত কারুকাজ।’

প্রতিমার সঙ্গেই ভারত পালের ৫০ বছর


বাসাইল উপজেলার পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক কৃষিবিদ সুনীল রায় স্বপন বলেন, ‘করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যু বাড়ার কারণে আমরা বড় দুশ্চিন্তায় ছিলাম। ঈশ্বরের কৃপায় প্রকোপ কিছুটা কমায় পূজার আয়োজন ও প্রতিমা তৈরির কাজ চলছে।

‘রাত-দিন কারিগররা পরিশ্রম করছেন। গত বছর ৪২টি মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হয়েছিল। এ বছর ৫৬টি মণ্ডপে পূজা হবে।’

এবার সরকারি সরকারি নির্দেশনায় কিছুটা ছাড় দেয়া হলেও স্বাস্থ্যবিধি মানতে কড়াকড়ির কথা বলা হয়েছে। সে অনুযায়ীই উৎসব অনুষ্ঠিত হবে বলে জানান তিনি।

শারদীয় দুর্গা পূজা শান্তিপূর্ণভাবে উদযাপনের জন্য উপজেলা প্রশাসন ও বাসাইল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাসহ সকলের সার্বিক সহযোগিতার কথাও বলেন তিনি।

শেয়ার করুন