চাপ কমছে হাসপাতালে, আইসিইউ অর্ধেকই ফাঁকা

চাপ কমছে হাসপাতালে, আইসিইউ অর্ধেকই ফাঁকা

করোনার সংক্রমণ কমে আসায় ঢাকার হাসপাতালগুলোর ৪৮ শতাংশ আইসিইউ শয্যা এখন ফাঁকা। অন্যদিকে ৬২ শতাংশ করোনা শয্যা এখন খালি পড়ে আছে।

করোনা সংক্রমণের দ্বিতীয় ঢেউয়ের কঠিন সময়টা পেরিয়ে এসেছে বলেই দৃশ্যত মনে করা হচ্ছে। মৃত্যু ও শনাক্ত কমার পাশাপাশি রাজধানীর হাসপাতালগুলোতে রোগীর চাপ কমেছে। একইসঙ্গে চাহিদা কমেছে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রের (আইসিইউ)।

ঢাকার হাসপাতালগুলোর ৪৮ শতাংশ আইসিইউ শয্যা এখন ফাঁকা। অন্যদিকে ৬২ শতাংশ করোনা শয্যা এখন খালি পড়ে আছে।

দুই সপ্তাহ আগে ঢাকার সরকারি-বেসরকারি কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালোর সাধারণ শয্যায় যেখানে ৩ হাজার ৭১৮ রোগী ভর্তি ছিল, বৃহস্পতিবার সেটি কমে ২ হাজার ৩৪৫ হয়েছে।

এক সময় আইসিইউর জন্য হাহাকার ছিল। আইসিইউ সংকটের কারণে এক হাসপাতাল থেকে অন্য হাসপাতালে রোগী নিয়ে স্বজনদের ছোটাছুটি করতে দেখা গেছে। তবে সেই চাহিদা এখন আর নেই। বৃহস্পতিবার রাজধানীর হাসপাতালগুলোতে ৪১২টি আইসিইউ শয্যা ফাঁকা ছিল।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য বিশ্লেষণ করে দেখা যায়, গত ১২ আগস্টের তুলেনায় ২৬ আগস্ট এসব হাসপাতালে ভর্তি রোগীর মোট সংখ্যা দ্রুত কমে আসায় হাসপাতালগুলোর সংকট অনেকটা কেটে গেছে।

দীর্ঘদিনের লকডাউন ও বিধিনিষেধ সংক্রমণ কমাতে ভূমিকা রেখেছে বলে মনে করছেন স্বাস্থ্য খাতের বিশেষজ্ঞরা।

চাপ কমছে হাসপাতালে, আইসিইউ অর্ধেকই ফাঁকা
করোনা ইউনিটে সেবা দিচ্ছেন চিকিৎসক ও নার্সরা। ফাইল ছবি

রোগী কমে আসার চিত্র রাজধানীর ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) ডেডিকেটেড কোভিড-১৯ হাসপাতালে চোখে পড়ে। এই হাসপাতালে দুই সপ্তাহ আগে প্রতি আধা ঘণ্টায় চার থেকে পাঁচটি রোগীবাহী অ্যাম্বুলেন্স চোখে পড়ত। বৃহস্পতিবার বেলা ১২টায় সেখানে গেলে পাওয়া যায় ভিন্ন চিত্র। হাসপাতালের কাউন্টার, অবজারভেশন কক্ষে ছিল নিরবতা।

ডিএনসিসি ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে এম নাসির উদ্দিন নিউজবাংলাকে বলেন, ‘দুই সপ্তাহে প্রায় তিনশ রোগী কমে গেছে। ১২ আগস্ট হাসপাতালে ৫১৪ জন রোগী ভর্তি থাকলেও সেটি এখন ২২১ জনে নেমে এসেছে।

‘একই সঙ্গে আইসিইউ চাহিদা কমে এসেছে। দুই সপ্তাহ আগে এ হাসপাতালে ২১২টি আইসিইউর মধ্যে সবগুলোতে রোগী ভর্তি ছিল। তবে এখন আইসিউতে ১৭৩টি শয্যায় রোগী ভর্তি।

‘এই ধারা অব্যাহত থাকলে এটি আমাদের জন্য অবশ্যই স্বস্তির খবর। এই সংক্রমণ কমতির ধারা অব্যাহত রাখতে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।’

চাপ কমছে হাসপাতালে, আইসিইউ অর্ধেকই ফাঁকা
সুস্থ হয়ে রাজধানীর ডিএনসিসি হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরছেন এক রোগী। ফাইল ছবি

পরিচালক বলেন, ‘সংক্রমণ কমে আসছে দীর্ঘদিন ধরে চলা লকডাউন ও বিধিনিষেধের কারণে। এ সময় সবাই স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলেছে। এ কারণে সংক্রমণ কিছু কমে এসছে। তবে আমরা যদি স্বাস্থ্যবিধি না মানি, তাহলে সংক্রমণ আবার বাড়বে।’

তিনি বলেন, ‘আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশগুলোতে আবার করোনার তৃতীয় ঢেউ চলে আসছে। অনেক দেশে আসার শঙ্কা রয়েছে। এ কারণে আবার হয়তো সংক্রমণ বাড়তে পারে। এ জন্য সবাইকে মানতে হবে স্বাস্থ্যবিধি। এমনকি টিকা নেয়ার সুযোগ থাকলে টিকা নিতে হবে। দুই সপ্তাহ আগে দিনরাত ফোন আসত আইসিইউর অনুরোধের জন্য, তবে এখন সেটা অনেক কমে এসেছে। রাত ১২টা-১টা, ভোর চারটার সময়ও ফোন আসত। এখন কিন্তু এখন অনেক কমে এসেছে।’

হাসপাতালের পরিচালক জানান, আইসিইউর চাহিদা কমায় এখন সাধারণ করোনা রোগীর শ্বাসকষ্ট দেখা দেয়ামাত্র তারা আইসিইউতে নিতে পারছেন। গোটা হাসপাতাল এখন কেন্দ্রীয় অক্সিজেনের আওতায় আনা হয়েছে। ফলে এখন প্রতিটি রোগীর জন্য অক্সিজেন সুবিধা আছে।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) করোনা ইউনিটেও এখন প্রায় অর্ধেক শয্যা ফাঁকা। আইসিইউও ফাঁকা। এই হাসপাতালে পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নজরুল ইসলাম খান নিউজবাংলাকে বলেন, ‘করোনা সংক্রমণ কমে আসায় কিছুটা স্বস্তি ফিরেছে হাসপাতালে। আইসিইউ চাহিদা কমতির দিকে।’

হাসপাতালের পরিচালক বলেন, জটিল রোগীদের সেবা দেয়ার জন্য অস্থায়ী হাসপাতাল চালু করা হয়েছে। দুই সপ্তাহে রোগী কিছুটা কমে এসেছে। এ হাসপাতালে বর্তমানে রোগী ভর্তি রয়েছে ৮৭ জন। দুই সপ্তাহ আগে ছিল ১৩৫ জন।

ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ৮৪৫ শয্যার মধ্যে দুই সপ্তাহ আগেই ১৪৮টি শয্যা ফাঁকা ছিল। তবে বর্তমানে ৩০২ শয্যা ফাঁকা আছে। আস্তে আস্তে অনেক চাপ কমে আসছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. নাজমুল হক বলেন, ‘গত এক সপ্তাহ ধরে শ্বাসকষ্ট নিয়ে আসা রোগীর সংখ্যা একটু কমেছে। তখন ঢাকা ও বাইরের জেলা থেকে আসা রোগীদের ভিড় ছিল চোখে পড়ার মতো। আবার অনেক রোগীকে বাসায় রেখে চিকিৎসার জন্য পরামর্শ দেয়া হয়। কারণ তাদেরকে হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা দেয়ার প্রয়োজন হয় না।’

আরও পড়ুন:
টিকার ২ ডোজ নিয়েও করোনায় আক্রান্ত হাবিবে মিল্লাত
করোনায় মৃত্যু ১০২, দুই মাসে সর্বনিম্ন
রাজশাহীতে এক দিনে মৃত্যু ৬, শনাক্তের হার ১৪ শতাংশ
ধাক্কা কাটিয়ে রাজশাহী মেডিক্যালের করোনা ওয়ার্ডে অর্ধেক ফাঁকা
এক দিনে মৃত্যু ১১৪, শনাক্তের হার ৭১ দিনে সর্বনিম্ন

শেয়ার করুন

মন্তব্য

পদ্মার ভাঙন, স্কুল মুহূর্তে বিলীন

পদ্মার ভাঙন, স্কুল মুহূর্তে বিলীন

পদ্মার ভাঙনে বিলীন হয়ে গেছে রাজবাড়ী সদরের চর সিলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। ছবি: নিউজবাংলা

রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপনির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুর রহমান অংকুর বলেন, ‘চর সিলিমপুরে হঠাৎ ভাঙনে স্কুলসহ সিসি ব্লকের ১০০ মিটার নদীতে গর্ভে বিলীন হয়েছে। আমরা সকাল থেকেই ভাঙন ঠেকাতে জিও ব্যাগ ফেলে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’

রাজবাড়ীতে পদ্মার ভাঙনে বিলীন হয়ে গেছে চর সিলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

শুক্রবার সকাল ১১টার দিকে স্কুলসহ ১০০ মিটার এলাকা মুহূর্তে নদীতে বিলীন হয়ে যায়। ঝুঁকিতে রয়েছে পদ্মা পাড়ের শতাধিক স্থাপনা। এর মধ্যে বসতভিটা, ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানসহ রয়েছে স্কুল ও মসজিদ।

জেলা শহর থেকে তিন কিলোমিটার দূরে চর সিলিমপুর গ্রাম। গ্রামে শিশুদের লেখাপড়ার একমাত্র ভরসা চর সিলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়। তাও নদীতে বিলীন হয়েছে।

স্থানীয় সিরাজ ফকির বলেন, ‘সকাল ১১টার দিকে হঠাৎ ভাঙন শুরু হয়। স্কুল নদীতে চলে গেছে। আমাগো বাড়ি নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি। কখন নদীতে ভেঙে যায়।’

৬০ বছর বয়সী রাশিদা বেগম বলেন, ‘আমার সব শেষ অইয়া যাইবো এইবার। এর আগে আরও দুই বার বাড়ি সরাইয়ে এহামে আয়ছিলাম। এইবার ও মমে অয় চইলা যাবি গাংগে। আমার তো ছোট্র একটা ঘর ছাড়া কিচ্ছুই নাই। আমি কনে যাবো।’

চর সিলিমপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির ছাত্র রনি জানায়, তার বাড়ি এই স্কুলের পাশেই। সে এই স্কুলে পড়তো। এখন সে কোথায় পড়বে। তার বাড়িটাও আছে ভাঙন ঝুঁকিতে।

স্কুলের প্রধান শিক্ষক ইমান আলী ফকির নিউজবাংলাকে বলেন, ‘স্কুল নদী গর্ভে চলে গেছে। আমি এখন ছাত্র- ছাত্রীদের নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি। এই স্কুলে প্রথম থেকে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত ১০৮ শিক্ষার্থী পড়ালেখা করে।’

রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপনির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুর রহমান অংকুর বলেন, ‘চর সিলিমপুরে হঠাৎ ভাঙনে স্কুলসহ সিসি ব্লকের ১০০ মিটার নদীতে গর্ভে বিলীন হয়েছে। আমরা সকাল থেকেই ভাঙন ঠেকাতে জিও ব্যাগ ফেলে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’

আরও পড়ুন:
টিকার ২ ডোজ নিয়েও করোনায় আক্রান্ত হাবিবে মিল্লাত
করোনায় মৃত্যু ১০২, দুই মাসে সর্বনিম্ন
রাজশাহীতে এক দিনে মৃত্যু ৬, শনাক্তের হার ১৪ শতাংশ
ধাক্কা কাটিয়ে রাজশাহী মেডিক্যালের করোনা ওয়ার্ডে অর্ধেক ফাঁকা
এক দিনে মৃত্যু ১১৪, শনাক্তের হার ৭১ দিনে সর্বনিম্ন

শেয়ার করুন

স্ত্রীর ওপর অভিমানে যুবলীগ নেতার ‘আত্মহত্যা’

স্ত্রীর ওপর অভিমানে যুবলীগ নেতার ‘আত্মহত্যা’

স্ত্রীর সঙ্গে যুবলীগ নেতা যুবলীগ নেতা এমরান হোসেন মুন্না।

মামলায় বলা হয়, কুমিল্লা কমার্শিয়াল ইনস্টিটিউটে (বর্তমানে সরকারি সিটি কলেজ) পড়ার সময় প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে যান দুই জন। ৮ বছর প্রেমের পর ২০১৮ সালের ২৫ জানুয়ারি তারা বিয়ে করেন। মেয়েটি পরে ঢাকায় একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। আর মুন্না কুমিল্লায়ই ঠিকাদারি ব্যবসা করতেন। দিনদিন তাদের মধ্যে সম্পর্কে ফাটল ধরে।

‘আর পাঁচটা মানুষের মতো আমার জীবন না। মনে রাখিস, তোর বেইমানির জন্য আত্মহত্যা করলাম..।’

কুমিল্লায় এমন একটি স্ট্যাটাস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন মহানগর যুবলীগ নেতা এমরান হোসেন মুন্না।

২৯ বছর বয়সী এই তরুণ কুমিল্লা সদরের বারপাড়ার মতিউর রহমানের ছেলে।

প্রেমের সুবাদে পরিবারের অমতেই বিয়ে করেছিলেন এমরান। কিন্তু এক বছর পার না হতেই তাদের সম্পর্কে দেখা দেয় জটিলতা।

মুন্নার স্ত্রী ঢাকায় পড়াশোনা করেন। সেখানে তিনি আরেকটি সম্পর্কে জড়িয়ে যান বলে ধারণা করতে থাকেন মুন্না। এ নিয়ে দুই জনের মধ্যে দূরত্ব বাড়তে থাকে। আর এক পর্যায়ে মুন্না আত্মহত্যা করেছেন, দাবি স্বজনদের।

বুধবার সন্ধ্যায় কুমিল্লা নগরীর বারপাড়া এলাকায় আত্মহত্যার ঘটনাটি ঘটে। বৃহস্পতিবার রাতে পুত্রবধূর বিরুদ্ধে আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনে কোতয়ালি মডেল থানায় মামলা করেন মুন্নার বাবা মতিউর রহমান।

মামলায় বলা হয়, কুমিল্লা কমার্শিয়াল ইনস্টিটিউটে (বর্তমানে সরকারি সিটি কলেজ) পড়ার সময় প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে যান দুই জন। ৮ বছর প্রেমের পর ২০১৮ সালের ২৫ জানুয়ারি তারা বিয়ে করেন।

মেয়েটি পরে ঢাকায় একটি বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন। আর মুন্না কুমিল্লায়ই ঠিকাদারি ব্যবসা করতেন। দিনদিন তাদের মধ্যে সম্পর্কে ফাটল ধরে।

স্বজনদের অভিযোগ, মেয়েটি মুন্নাকে বিভিন্নভাবে মানসিক নির্যাতন করতেন। চাহিদা মতো টাকা দিতে না পারার অজুহাতে মরে যেতেও বলতেন। এতে মানসিকভাবে মুন্না ভেঙে পড়েন।

গত বুধবার মুন্না আত্মহত্যার প্রস্তুতি নিয়ে স্ত্রীকে ছবি ও মেসেজ পাঠান। কিন্তু তাতেও কর্ণপাত করেননি স্ত্রী। অভিমান করে নিজের শোবার ঘরেই সিলিং ফ্যানে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেন মুন্না। পরে পরিবারের লোকজন দরজা ভেঙে হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।

কুমিল্লা কোতয়ালি মডেল থানার ওসি আন্ওয়ারুল আজিম বলেন, ‘পরিবার আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা করেছে। আমরা বিষয়টি তদন্ত করে দেখছি। এটা প্রমাণসাপেক্ষ বিষয়। তাই কেন তিনি আত্মহত্যা করেছেন, তা প্রমাণিত না হওয়া পর্যন্ত বিস্তারিত বলা যাবে না।’

আরও পড়ুন:
টিকার ২ ডোজ নিয়েও করোনায় আক্রান্ত হাবিবে মিল্লাত
করোনায় মৃত্যু ১০২, দুই মাসে সর্বনিম্ন
রাজশাহীতে এক দিনে মৃত্যু ৬, শনাক্তের হার ১৪ শতাংশ
ধাক্কা কাটিয়ে রাজশাহী মেডিক্যালের করোনা ওয়ার্ডে অর্ধেক ফাঁকা
এক দিনে মৃত্যু ১১৪, শনাক্তের হার ৭১ দিনে সর্বনিম্ন

শেয়ার করুন

নিখোঁজের চার মাস পর ঢাকা থেকে উদ্ধার স্কুলছাত্রী

নিখোঁজের চার মাস পর ঢাকা থেকে উদ্ধার স্কুলছাত্রী

নিখোঁজ স্কুলছাত্রীকে উদ্ধারের পর শুক্রবার লক্ষ্মীপুর আদালতে নেয়া হয়। ছবি: নিউজবাংলা

গত ২৩ মে সকালে স্কুলে যাওয়ার পথে ওই কিশোরী নিখোঁজ হয়। পরে তার মা অপহরণের অভিযোগে স্থানীয় জিসানসহ তিন যুবকের নামে মামলা করেন।

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ থেকে নিখোঁজের চার মাস পর দশম শ্রেণির এক স্কুলছাত্রীকে রাজধানী থেকে উদ্ধার করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

রাজধানীর মহাখালীর একটি বাসা থেকে বৃহস্পতিবার রাতে উদ্ধারের পর শুক্রবার বিকেলে তাকে লক্ষ্মীপুর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম রায়হান চৌধুরীর আদালতে নেয়া হয়। সেখানে তার জবানবন্দি নেন বিচারক।

গত ২৩ মে সকালে স্কুলে যাওয়ার পথে ওই কিশোরী নিখোঁজ হয়। পরে তার মা অপহরণের অভিযোগে স্থানীয় জিসানসহ তিন যুবকের নামে মামলা করেন।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআইয়ের উপপরিদর্শক ফরিদ উদ্দিন জানান, ওই কিশোরী নিখোঁজ হওয়ার দিন বিকেলে তার মা রামগঞ্জ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন। পরে লক্ষ্মীপুর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম আদালতে জিসান আলমসহ তিনজনকে আসামি করে অপহরণ মামলা করেন।

তিনি আরও জানান, আদালত মামলাটি পিবিআইকে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়। তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে পরে গাজীপুরসহ বিভিন্ন স্থানে ওই ছাত্রীকে উদ্ধারে অভিযান চালানো হয়। সবশেষ বৃহস্পতিবার রাতে মহাখালীর একটি বাসায় তার অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার পর অভিযান চালিয়ে উদ্ধার করা হয়। তবে এ সময় কাউকে আটক করা যায়নি।

অপহরণ না প্রেম করে পালিয়ে গেছে সে বিষয়ে তদন্ত চলছে বলেও জানান পুলিশের এ কর্মকর্তা।

মামলায় কিশোরীর মা অভিযোগ করেন, তার মেয়েকে স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে উত্ত্যক্ত করত জিসানসহ কয়েক যুবক। এ বিষয়ে স্কুলের প্রধান শিক্ষকসহ জিসানের পরিবারকে জানানো হলেও কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। ঘটনার দিন সকাল সাড়ে ৮টার দিকে স্কুলে যাওয়ার পথে জিসানসহ কয়েক বখাটে তাকে সিএনজিতে তুলে নিয়ে যায়।

তিনি বলেন, ‘আমার মেয়ে মনিকা আক্তার এখনও অবুঝ। তার বয়স ১৫ বছর। স্কুলে আসা-যাওয়ার পথে প্রায় উত্ত্যক্ত করত জিসানসহ কয়েক বখাটে। ঘটনার দিন স্কুলে প্রাইভেট পড়তে যাওয়ার সময় তাকে অপহরণ করা হয়।

‘এরপর বিভিন্ন সময় মোবাইল ফোনে জিসান আমার মেয়ের প্রাণনাশ এবং অ্যাসিড দিয়ে জ্বালিয়ে দেয়ার ভয়ভীতি ও হুমকিধমকি দেয়। মেয়ে উদ্ধার হওয়ায় খুশি। তবে জড়িতদের গ্রেপ্তারের দাবি জানাই।’

আরও পড়ুন:
টিকার ২ ডোজ নিয়েও করোনায় আক্রান্ত হাবিবে মিল্লাত
করোনায় মৃত্যু ১০২, দুই মাসে সর্বনিম্ন
রাজশাহীতে এক দিনে মৃত্যু ৬, শনাক্তের হার ১৪ শতাংশ
ধাক্কা কাটিয়ে রাজশাহী মেডিক্যালের করোনা ওয়ার্ডে অর্ধেক ফাঁকা
এক দিনে মৃত্যু ১১৪, শনাক্তের হার ৭১ দিনে সর্বনিম্ন

শেয়ার করুন

ট্যাংকার বিস্ফোরণ: নিখোঁজ শ্রমিকের লাশ ‍উদ্ধার

ট্যাংকার বিস্ফোরণ: নিখোঁজ শ্রমিকের লাশ ‍উদ্ধার

প্রতীকী ছবি

বুধবার বিকেল ৫টার দিকে কর্ণফুলী নদীর দক্ষিণ পাড়ে ‘ও সি ওশান’ জাহাজের ট্যাংকারে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। আত্মরক্ষার্থে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ হন শ্রমিক সাদ্দাম। শুক্রবার দুপুরে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

চট্টগ্রামের কর্ণফুলীতে একটি তেলের জাহাজে (ট্যাংকার) বিস্ফোরণে নিখোঁজ শ্রমিকের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

কর্ণফুলী নদীর ব্রিজঘাট এলাকা থেকে শুক্রবার দুপুর ১২টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করে সদরঘাট নৌপুলিশ।

মৃত শ্রমিকের নাম নজরুল ইসলাম সাদ্দাম। তার বাড়ি পটিয়ার চরলক্ষ্যা এলাকায়।

ঘটনার দিন তিনি জাহাজে মেরামতের কাজ করছিলেন।

নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন সদরঘাট নৌ-থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান।

তিনি বলেন, ‘ব্রিজঘাট এলাকায় নদীতে মরদেহটি ভাসতে দেখেন স্থানীয়রা। পরে মরদেহটি উদ্ধার করে থানায় আনা হয়।’

তিনি আরও জানান, ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।

বুধবার বিকেল ৫টার দিকে কর্ণফুলী নদীর দক্ষিণ পাড়ে চরপাথরঘাটার ২ নম্বর ওয়ার্ডে ‘ও সি ওশান’ জাহাজের ট্যাংকারে বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় জাহাজের লস্কর মো. জিসান চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা চলাকালে বুধবার রাত ৮টার দিকে মারা যান।

ওই বিস্ফোরণের ঘটনায় আত্মরক্ষার্থে নদীতে ঝাঁপ দিয়ে নিখোঁজ হন নজরুল।

সদরঘাট নৌ-থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আবুল কালাম নিউজবাংলাকে বলেন, ‘বুধবার বিকেলে মূল ট্যাংক থেকে গ্যাস সংযোগ নিয়ে জাহাজের কোনো একটি অংশে মেরামতের কাজ করছিলেন সাদ্দাম। এ সময় গ্যাস ট্যাংকটি বিস্ফোরিত হলে তিনি নদীতে লাফ দেন। পরে তাকে আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। আজ (শুক্রবার) তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।’

এসআই আবুল কালাম বলেন, ‘ঘটনার পরপরই জাহাজটি ঘটনাস্থল থেকে সরিয়ে নেয় মালিকপক্ষ। তাই খবর পেতে একটু দেরি হয়েছে। তবে রাতে বিষয়টি জানার পর আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে কিছুই পাইনি। এ ঘটনায় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।’

আরও পড়ুন:
টিকার ২ ডোজ নিয়েও করোনায় আক্রান্ত হাবিবে মিল্লাত
করোনায় মৃত্যু ১০২, দুই মাসে সর্বনিম্ন
রাজশাহীতে এক দিনে মৃত্যু ৬, শনাক্তের হার ১৪ শতাংশ
ধাক্কা কাটিয়ে রাজশাহী মেডিক্যালের করোনা ওয়ার্ডে অর্ধেক ফাঁকা
এক দিনে মৃত্যু ১১৪, শনাক্তের হার ৭১ দিনে সর্বনিম্ন

শেয়ার করুন

বিরোধীরা হটল, জাহাঙ্গীর সমর্থকদের ‘দখলে’ বোর্ডবাজার

বিরোধীরা হটল, জাহাঙ্গীর সমর্থকদের ‘দখলে’ বোর্ডবাজার

গাজীপুরের বোর্ডবাজারে সমাবেশে যাওয়ার সময় মেয়র জাহাঙ্গীর আলম। ছবি: নিউজবাংলা

টানা তৃতীয় দিন বিক্ষোভের অংশ হিসেবে শুক্রবার বিকেলে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে বোর্ডবাজার বড় মসজিদের সামনে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের ব্যানারে মিছিল ও সমাবেশ ডাকা হয় মেয়র জাহাঙ্গীরের শাস্তি ও বহিষ্কারের দাবিতে। পাশেই বেলা সাড়ে তিনটায় বোর্ড বাজারের ইউটিসি চত্বরে আলোচনা সভা ও আনন্দ মিছিলের আয়োজন করে মেয়র অনুসারীরা। এই আয়োজন ঠিকঠাক মতো হলেও বিক্ষোভের আয়োজনে এক নেতাকে পুলিশ সরিয়ে নেয়ার পর তার অনুসারীরা সড়ক থেকে চলে যান।

মুক্তিযুদ্ধে শহীদের সংখ্যা, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধুর দেশ স্বাধীন করার উদ্দেশ্য নিয়ে কটূক্তির অভিযোগ উঠার পর গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের শাস্তির দাবিতে সমাবেশস্থল থেকে হটে যেতে বাধ্য হয়েছে আওয়ামী লীগের একাংশের নেতা-কর্মীরা।

যেখানে এই সমাবেশ ডাকা হয়েছিল, তার অদূতে সমাবেশ করেছে মেয়র অনুসারীরা। জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রায় (এসডিজি) এগিয়ে থাকায় বাংলাদেশের সম্মাননা অর্জন করায় এই আনন্দ সমাবেশ ডাকে মেয়র অনুসারীরা।

চার দিন আগে মেয়র ভারত সফরে যাওয়ার পর একটি ঘরোয়া আয়োজনে তার কথা বলার একটি ভিডিও ছড়িয়ে পড়ে। সেখানে মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে অবমাননাকর বক্তব্য দেয়ার অভিযোগ উঠার পর বুধবার থেকে আওয়ামী লীগের একটি অংশ গাজীপুরে বিক্ষোভ শুরু করে।

টানা তৃতীয় দিন বিক্ষোভের অংশ হিসেবে শুক্রবার বিকেল ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কে বোর্ড বাজার বড় মসজিদের সামনে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের ব্যানারে মিছিল ও সমাবেশ ডাকা হয় মেয়র জাহাঙ্গীরের শাস্তি ও বহিষ্কারের দাবিতে।

পাশেই বিকাল সাড়ে তিনটায় বোর্ড বাজারের ইউটিসি চত্বরে আলোচনা সভা ও আনন্দ মিছিলের আয়োজন করে মেয়র অনুসারীরা। এ সমাবেশে মেয়র জাহাঙ্গীর যে যোগ দেবেন, তা জানানো হয় আগেই।

দুই পক্ষের এই বিক্ষোভে উত্তেজনার মধ্যে এলাকার নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে দুপুর থেকেই চার শতাধিক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। সেখানে মোতায়েন করা হয় জলকামানও। পোশাকধারী পুলিশের পাশাপাশি সাদাপোশাকে নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন করা হয।

বেলা তিনটার পর থেকে দুই পক্ষের নেতা-কর্মীরাই সমাবেশস্থলে আসতে শুরু করে। ঝাড়ু হাতে মিছিল নিয়ে আসতে দেখা গেছে বিক্ষোভ সমাবেশের কর্মীদের।

বিরোধীরা হটল, জাহাঙ্গীর সমর্থকদের ‘দখলে’ বোর্ডবাজার
ঝাড়ু হাতে মিছিল নিয়ে আসতে থাকেন জাহাঙ্গীরবিরোধীরা

তবে বিকেল ৪টার দিকে ৯নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ব্যানারে নেতাকর্মীরা আনন্দ মিছিল নিয়ে সমাবেশস্থলে আসতে শুরু করে।

জাহাঙ্গীরবিরোধী বিক্ষোভের আয়োজকদের একজন ৩৫ নম্বর কাউন্সিলর মামুন মণ্ডলের কার্যালয়ের সামনে পৌঁছালে বিক্ষোভকারীদের মুখে পড়ে জাহাঙ্গীর অনুসারীরা।

বিরোধীরা হটল, জাহাঙ্গীর সমর্থকদের ‘দখলে’ বোর্ডবাজার
জাহাঙ্গীরবিরোধী বিক্ষোভের আয়োজকদের একজন ৩৫ নম্বর কাউন্সিলর মামুন মণ্ডলকে পুলিশি পাহারায় সরিয়ে নেয়া হচ্ছে

এ সময় দুই পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে ইটপাটকেল নিক্ষেপে আবু সাঈদ নামে মেয়রের এক সমর্থক আহত হয়। আবু সাঈদ জানান, হামলায় আরও দুজন আহত হয়েছে। তাদেরকে হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

এর মধ্যে কাউন্সিলর মামুন মণ্ডলকে সরিয়ে নেয় পুলিশ। পরে জাহাঙ্গীরবিরোধী বিক্ষোভকারীরাও একে একে চলে যায়।

এরপর জাহাঙ্গীরের অনুসারীরা নির্বিঘ্নে সমাবেশ করে। সেখানে যোগ দেন মেয়র নিজেও।

বিরোধীরা হটল, জাহাঙ্গীর সমর্থকদের ‘দখলে’ বোর্ডবাজার
হাজারখানেক নেতাকর্মীকে নিয়ে ঢাক-ঢোল পিটিয়ে সমাবেশে যোগ দেন মেয়র জাহাঙ্গীর

নগরীর ছয়দানা এলাকার নিজ বাসা থেকে ৪টার কিছু সময় পর বের হন মেয়র জাহাঙ্গীর। হাজারখানেক নেতাকর্মীকে নিয়ে ঢাক-ঢোল পিটিয়ে সমাবেশ স্থলের দিকে যান তিনি। বিকেল ৪টা ৪০ মিনিটে তিনি মঞ্চে উঠেন। মঞ্চে উঠার পরপর নেতাকর্মীরা তাকে ঘিরে স্লোগান দিতে থাকে।

এর আগে বেলা পৌনে চারটার দিনে মেয়রের অনুরাসীরা মিছিল নিয়ে সমাবেশস্থলে যাওয়ার সময় দুই পক্ষে ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু হয়। এ সময় মেয়রের শাস্তির দাবিতে বিক্ষুব্ধরা সমাবেশ ছেড়ে আশপাশের সড়ক গুলোতে অবস্থান নেয়।

সে সময় বোর্ডবাজার এলাকার সকল দোকানপাট ও মার্কেট বন্ধ হয়ে যায়।

গত কয়েকদিন ধরে ফেসবুকে একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে, সেখানে একটি ঘরোয়া আয়োজনে মেয়র জাহাঙ্গীরকে কথা বলতে দেখা যায়।

চার মিনিটের ওই ভিডিওতে দেখা যায়, বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযুদ্ধ ছাড়াও মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি আজমত উল্লাহ খান, যুব ও ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী জাহিদ আহসান রাসেল, হেফাজতের প্রয়াত নেতা জুনায়েদ বাবুনগরীর সঙ্গে তার সখ্য ও রাষ্ট্রীয় দুটি সংস্থা নিয়ে নানা আপত্তিকর মন্তব্য করছেন মেয়র জাহাঙ্গীর।

ভিডিওটির শুরুতে মেয়র জাহাঙ্গীরকে মুক্তিযুদ্ধের ৩০ লাখ শহীদের সংখ্যা নিয়ে সংশয় প্রকাশ করতে শোনা যায়। তার দাবি, বঙ্গবন্ধু তার স্বার্থে এই বিষয়টি উল্লেখ করেছেন। পাকিস্তান ভাঙার পেছনে রাষ্ট্রপতি হওয়ার বাসনা কাজ করেছে বলেও মনে করেন ক্ষমতাসীন দলের নেতা।

জাহাঙ্গীরের পক্ষে-বিপক্ষে সমাবেশে পুলিশের ব্যাপক নিরাপত্তা

তার ধারণা, বাংলাদেশ স্বাধীন না হয়ে ব্রিটেনের সঙ্গে থাকলে পৃথিবীর সবচেয়ে উন্নত জাতি থাকত এখানকার মানুষ।

এই ঘটনায় বুধবার থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের বিভিন্ন এলাকা অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীরা। মেয়রকে দল থেকে বহিষ্কার, তার পদ কেড়ে নেয়া ও আইনি ব্যবস্থা নেয়ার দাবিতে বৃহস্পতিবার রেল লাইনও অবরোধ করে তারা।

এই ভিডিওটি ভাইরাল হওয়ার সময় মেয়র জাহাঙ্গীর ছিলেন ভারতে। বুধবার গভীর রাতে দেখে ফিরে তিনি একটি ভিডিও বার্তা দিয়েছেন। তার দাবি, এই ভিডিওটি বানোয়াট। ভিডিওটি যারা শেয়ার করেছেন, তাদেরকে সেটি ডিলিট করে দেয়ার পরামর্শ দিয়ে বলেন, না হলে আইনি ব্যবস্থা নেবেন।

আরও পড়ুন:
টিকার ২ ডোজ নিয়েও করোনায় আক্রান্ত হাবিবে মিল্লাত
করোনায় মৃত্যু ১০২, দুই মাসে সর্বনিম্ন
রাজশাহীতে এক দিনে মৃত্যু ৬, শনাক্তের হার ১৪ শতাংশ
ধাক্কা কাটিয়ে রাজশাহী মেডিক্যালের করোনা ওয়ার্ডে অর্ধেক ফাঁকা
এক দিনে মৃত্যু ১১৪, শনাক্তের হার ৭১ দিনে সর্বনিম্ন

শেয়ার করুন

শনাক্তের হার আরও কমে ৪.৫, মৃত্যু ৩১

শনাক্তের হার আরও কমে ৪.৫, মৃত্যু ৩১

দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ৩১ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ সময়ে সংক্রমণ ধরা পড়েছে আরও ১ হাজার ২৩৩ জনের দেহে। কমেছে শনাক্তের হারও।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে শুক্রবার পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। এতে জানানো হয়, দেশে এ পর্যন্ত করোনার সংক্রমণ ধরা পড়েছে ১৫ লাখ ৪৯ হাজার ৫৫৩ জনের দেহে। এর মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ২৭ হাজার ৩৬৮ জনের।

দেশের ৮১৫টি ল্যাবে ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষা করা হয় ২৭ হাজার ১৪১টি। শনাক্তের হার ৪ দশমিক ৫৪ শতাংশ। এর চেয়ে কম শনাক্ত ছিল গত ৭ মার্চ। সেদিন শনাক্তের হার ছিল ৪ দশমিক ৩ শতাংশ।

এ নিয়ে টানা চার দিন শনাক্তের হার ৫ শতাংশের নিচে।

বিস্তারিত আসছে...

আরও পড়ুন:
টিকার ২ ডোজ নিয়েও করোনায় আক্রান্ত হাবিবে মিল্লাত
করোনায় মৃত্যু ১০২, দুই মাসে সর্বনিম্ন
রাজশাহীতে এক দিনে মৃত্যু ৬, শনাক্তের হার ১৪ শতাংশ
ধাক্কা কাটিয়ে রাজশাহী মেডিক্যালের করোনা ওয়ার্ডে অর্ধেক ফাঁকা
এক দিনে মৃত্যু ১১৪, শনাক্তের হার ৭১ দিনে সর্বনিম্ন

শেয়ার করুন

‘ভুল চিকিৎসায়’ শিশুর মৃত্যু, পল্লি চিকিৎসক কারাগারে

‘ভুল চিকিৎসায়’ শিশুর মৃত্যু, পল্লি চিকিৎসক কারাগারে

শিশুটির বাবা সাইদুল জানান, তার ৯ মাসের ছেলে ইয়ামিন জ্বর, সর্দি ও কাশিতে আক্রান্ত হলে রোববার বরগুনার চাইল্ড কেয়ার সেন্টারের চিকিৎসক মাসুম বিল্লাহর কাছে নিয়ে যান। চিকিৎসক মাসুম তাকে হার্টের চিকিৎসা দিলে ওই দিন রাতেই তার মৃত্যু হয়।

বরগুনায় ভুল চিকিৎসায় শিশু মৃত্যুর অভিযোগে এক পল্লি চিকিৎসককে কারাগারে পাঠিয়েছে আদালত।

বরগুনা আদালতের মাধ্যমে শুক্রবার দুপুরে ওই চিকিৎসককে কারাগারে পাঠানো হয়। বৃহস্পতিবার শিশুটির বাবা সাইদুল ইসলাম বরগুনা থানায় চিকিৎসক মাসুম বিল্লাহর বিরুদ্ধে অপচিকিৎসার মামলা করেন। ওই দিন রাতেই তাকে আটক করে পুলিশ।

বরগুনা সদর উপজেলার চালিতাতলী গ্রামের বাসিন্দা সাইদুল জানান, তার ৯ মাসের ছেলে ইয়ামিন জ্বর, সর্দি ও কাশিতে আক্রান্ত হলে রোববার বরগুনার চাইল্ড কেয়ার সেন্টারের চিকিৎসক মাসুম বিল্লাহর কাছে নিয়ে যান। মাসুম প্রাথমিকভাবে দেখে জরুরি ভিত্তিতে বিভিন্ন পরীক্ষা দেন।

তিন হাজার টাকায় পরীক্ষাগুলো করানোর পর মাসুম রিপোর্ট দেখে তাদের জানান, ইয়ামিনের হৃদযন্ত্রে সমস্যা রয়েছে। তাকে পরপর চার দিন চারটি ইনজেকশন দিতে হবে। পরে ওই দিন বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে মাসুম নিজ হাতে একটি ইনজেকশন দেন এবং ব্যবস্থাপত্র অনুযায়ী নিয়মিত ওষুধ সেবনের পরামর্শ দিয়ে তাদের বাড়িতে পাঠিয়ে দেন।

তিনি আরও জানান, ইনজেকশন পুশ করার পর থেকেই ইয়ামিনের শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে থাকে। রাত ৮টার দিকে চিকিৎসক মাসুমকে বিষয়টি মোবাইল ফোনে জানালে তিনি ব্যবস্থাপত্র অনুসারে ওষুধ সেবনের পরামর্শ দেন। পরে রাত ৯টার দিকে খিঁচুনি দিয়ে তার ছেলের মৃত্যু হয়।

সাইদুল বলেন, ‘আমার শিশুসন্তান মাসুম বিল্লাহর অপচিকিৎসায় মারা গেছে। আমি এবং আমার পরিবার ওই ডাক্তারের বিচার চাই।’

চিকিৎসক মাসুম বিল্লাহর বিরুদ্ধে অবশ্য অপচিকিৎসার অভিযোগ এটাই প্রথম নয়। এর আগে ২২ জানুয়ারি বরগুনার নলটোনা এলাকার হাসান নামের একজন তার মায়ের হাত ভেঙে গেলে চিকিৎসক মাসুমের কাছে নিয়ে যান।

হাসানের অভিযোগ, মাসুম তার মায়ের অপচিকিৎসা করেন। তিনি প্রতিবাদ করলে মাসুম উল্টো তাকে হুমকিধমকি দিয়ে তাড়িয়ে দেন। মাসুমের চিকিৎসায় তার মায়ের হাত প্রায় অচল হয়ে গিয়েছিল। পরে প্রায় দেড় লাখ টাকা খরচে উন্নত চিকিৎসা নিয়ে তার মা সুস্থ হন।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মেহেদী হাসান জানান, শিশুটির বাবার লিখিত অভিযোগে বৃহস্পতিবার রাতে চিকিৎসক মাসুমকে জেলার টাউন হল এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করে সদর থানা পুলিশ। দুপুরের দিকে তাকে আদালতের মাধ্যম কারাগারে পাঠানো হয়।

আরও পড়ুন:
টিকার ২ ডোজ নিয়েও করোনায় আক্রান্ত হাবিবে মিল্লাত
করোনায় মৃত্যু ১০২, দুই মাসে সর্বনিম্ন
রাজশাহীতে এক দিনে মৃত্যু ৬, শনাক্তের হার ১৪ শতাংশ
ধাক্কা কাটিয়ে রাজশাহী মেডিক্যালের করোনা ওয়ার্ডে অর্ধেক ফাঁকা
এক দিনে মৃত্যু ১১৪, শনাক্তের হার ৭১ দিনে সর্বনিম্ন

শেয়ার করুন