তুরস্ক সফর শেষে দেশে ফিরলেন সেনাপ্রধান

তুরস্ক সফর শেষে দেশে ফিরলেন সেনাপ্রধান

তুরস্কে আন্তর্জাতিক প্রতিরক্ষা মেলায় সেনাপ্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। ছবি: আইএসপিআর

তুরস্কের ঊর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাতে দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে দ্বিপাক্ষিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন সেনাপ্রধান। আলোচনায় দুই দেশের মধ্যে প্রতিরক্ষা বিষয়ক সম্ভাব্য সহযোগিতার ক্ষেত্র, প্রশিক্ষণ বিনিময়ের মতো বিষয়গুলো গুরুত্ব পেয়েছে।

তুরস্কে সরকারি সফর শেষে দেশে ফিরেছেন সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ। বৃহস্পতিবার ঢাকায় পৌঁছান তিনি।

আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) থেকে রাতে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত ১৮ আগস্ট দুপুরে ঢাকা থেকে তুরস্কের ইস্তাম্বুলে পৌঁছান সেনাপ্রধান। তাকে অভ্যর্থনা জানান বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মাসুদ মান্নান।

সেখানে তুরস্কের জাতীয় প্রতিরক্ষা উপমন্ত্রী মুহসিন দেরে এবং তুর্কি ডিফেন্স ইন্ডাস্ট্রিজের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী ইসমাইল দেমির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন জেনারেল শফিউদ্দিন। এ সময় বাংলাদেশকে সামরিক সরঞ্জামাদিসহ সব ধরনের সহযোগিতা এবং সহায়তার প্রতিশ্রুতি দেন তারা।

পরে আন্তর্জাতিক প্রতিরক্ষা মেলার বিভিন্ন স্টল পরিদর্শন এবং সেখান প্রদর্শিত নানা সামরিক সরঞ্জামের বিষয়ে জানেন সেনাপ্রধান।

ইস্তাম্বুল থেকে আঙ্কারা পৌঁছে মোস্তফা কামাল আতাতুর্কের সমাধিতে শ্রদ্ধা জানান সেনাপ্রধান। পরে তুর্কি চিফ অব ল্যান্ড ফোর্সেস জেনারেল মুসা আভ সেভের এবং চিফ অব জেনারেল স্টাফ জেনারেল ইয়াসের গুলের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন তিনি।

সাক্ষাতে তুরস্ক এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর মধ্যে দ্বিপাক্ষিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট নানা বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন সেনাপ্রধান। আলোচনায় দুই দেশের মধ্যে প্রতিরক্ষা বিষয়ক সম্ভাব্য সহযোগিতার ক্ষেত্র, প্রশিক্ষণ বিনিময়ের মতো বিষয়গুলো গুরুত্ব পেয়েছে।

এ ছাড়া দেশটির সেনাবাহিনীর গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাতের পাশাপাশি আনম্যানড এরিয়াল সিস্টেমের (ইউএএস) অপারেশন কন্ট্রোল রুম, আর্মি এভিয়েশন সদর দপ্তর এবং এরোস্পেস ইন্ডাস্ট্রিজ ঘুরে দেখেন জেনারেল শফিউদ্দিন আহমেদ।

সফরের শেষ দিনে তুরস্কের ন্যাশনাল ডিফেন্স ইউনিভার্সিটি (এনডিইউ) পরিদর্শন করেন তিনি। এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়টির কার্যক্রম ও সংশ্লিষ্ট নানা বিষয় সম্পর্কে তাকে জানানো হয়। এনডিইউর রেক্টর ইরহান আফইয়োনজু সেখানে তাকে সংবর্ধনা দেন।

ঢাকা ফেরার আগে তুরস্কের প্রথম আর্মি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট জেনারেল কেমাল ইয়েনিও সেনাপ্রধানের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন।

এই সফরের মাধ্যমে দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হবে এবং সহযোগিতার সম্ভাবনা আরও বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

আরও পড়ুন:
তুরস্ক সেনাবাহিনীর সঙ্গে বাড়বে সহযোগিতা: সেনাপ্রধান
৮ দিনের সফরে তুরস্ক গেলেন সেনা প্রধান
ঈদশুভেচ্ছা বিনিময়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে তুরস্কের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ
সেনাবাহিনী সব সময় জনগণের পাশে থাকবে: সেনাপ্রধান

শেয়ার করুন

মন্তব্য

নিজ বাড়ির সামনে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা

নিজ বাড়ির সামনে কৃষককে কুপিয়ে হত্যা

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় কৃষককে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। ছবি: নিউজবাংলা

লালমনিরহাট সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (বি-সার্কেল) তাপস সরকার নিউজবাংলাকে জানান, আব্দুল মালেক রোববার রাতে বাড়ির সামনে একটু অন্ধকারে একা বসে ছিলেন। এ সময় পেছন দিক থেকে দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

লালমনিরহাটের হাতীবান্ধায় এক কৃষককে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা।

উপজেলার তিস্তা ব্যারাজের পাশে দোয়ানী এলাকায় নিজ বাড়ির সামনে রোববার রাত সাড়ে ৮টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত আব্দুল মালেকের বাড়ি গড্ডিমারী ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের দোয়ানী এলাকাতেই।

মালেকের পরিবারের দাবি জমি সংক্রান্ত মামলার জেরে তাকে হত‌্যা করা হয়েছে।

লালমনিরহাট সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (বি-সার্কেল) তাপস সরকার নিউজবাংলাকে জানান, আব্দুল মালেক রোববার রাতে বাড়ির সামনে একটু অন্ধকারে একা বসে ছিলেন। এ সময় পেছন দিক থেকে দুর্বৃত্তরা তাকে কুপিয়ে পালিয়ে যায়। ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়।

মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে।

হত্যার কারণ জানতে চাইলে পুলিশ সুপার জানান, মালেকের পরিবারের সঙ্গে কথা বলে তদন্ত করা হচ্ছে। এ ঘটনায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।

পাশাপাশি অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।

আরও পড়ুন:
তুরস্ক সেনাবাহিনীর সঙ্গে বাড়বে সহযোগিতা: সেনাপ্রধান
৮ দিনের সফরে তুরস্ক গেলেন সেনা প্রধান
ঈদশুভেচ্ছা বিনিময়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে তুরস্কের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ
সেনাবাহিনী সব সময় জনগণের পাশে থাকবে: সেনাপ্রধান

শেয়ার করুন

বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে দুই শিশুসহ নিহত ৩

বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে দুই শিশুসহ নিহত ৩

হবিগঞ্জের মাধবপুরে বাসচাপায় অটোরিকশার তিনজন নিহত হয়েছেন। ছবি: নিউজবাংলা

হবিগঞ্জের মাধবপুরে অসুস্থ্য ছেলেকে হাসপাতালে নেয়ার পথে বাসচাপায় অটোরিকশার তিনজন নিহত হয়েছেন। এ সময় আহত হয়েছেন আরও দুইজন।

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে উপজেলার আন্দিউড়া এলাকায় উম্মেতুনেছা উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে সোমবার দুপুর ১টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাইনুল ইসলাম নিউজবাংলাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বিস্তারিত আসছে…

আরও পড়ুন:
তুরস্ক সেনাবাহিনীর সঙ্গে বাড়বে সহযোগিতা: সেনাপ্রধান
৮ দিনের সফরে তুরস্ক গেলেন সেনা প্রধান
ঈদশুভেচ্ছা বিনিময়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে তুরস্কের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ
সেনাবাহিনী সব সময় জনগণের পাশে থাকবে: সেনাপ্রধান

শেয়ার করুন

ভর্তি জালিয়াতি: ছাত্রত্ব হারাচ্ছেন ঢাবির আরও দুজন

ভর্তি জালিয়াতি: ছাত্রত্ব হারাচ্ছেন ঢাবির আরও দুজন

এ ছাড়া, অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং অধিভুক্ত সাত কলেজের ৭২জন শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তি দেয়া হয়েছে।

ডিজিটাল জালিয়াতি ও অবৈধ পন্থায় ভর্তি হওয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আরও দুই শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কারের সুপারিশ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা পরিষদ।

বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা পরিষদের এক সভায় এ সুপারিশ করা হয়। বিষয়টি বিশ্ববিদ্যালয়ের আগামী সিন্ডিকেট সভায় উপস্থাপন করা হবে।

উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামানের সভাপতিত্বে সভায় মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ‘উদ্যানের রাজা’ ঢাবি শিক্ষার্থী আখতারুল করীম রুবেলকে সাময়িক বহিষ্কারেরও সুপারিশ করা হয়েছে।

এ ছাড়া, অভ্যন্তরীণ বিভিন্ন পরীক্ষায় অসদুপায় অবলম্বনের দায়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এবং অধিভুক্ত সাত কলেজের ৭২জন শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে শাস্তি দেয়া হয়েছে।

অবৈধ পন্থায় ভর্তি হওয়ার দায়ে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের সুপারিশপ্রাপ্তরা হলেন অ্যাকাউন্টিং অ্যান্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের মো. রাকিব হাসান ও ভূতত্ত্ব বিভাগ শিক্ষার্থী ইশরাক হোসেন রাফি। তারা দুইজনই ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি হয়েছিলেন।

গত ১১ ফেব্রুয়ারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শৃঙ্খলা পরিষদের সভা থেকে এই দুই শিক্ষার্থীকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়েছিল।

জালিয়াতির মাধ্যমে ভর্তি হওয়ার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় এর আগে দুই দফায় ৮৫ জন শিক্ষার্থীকে আজীবন বহিষ্কার করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। তারা সবাই পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) করা মামলার আসামি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁস ও জালিয়াতির সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ২০১৯ সালের ২৩ জুন বিশ্ববিদ্যালয়ের এই ৮৭ জন শিক্ষার্থীসহ ১২৫ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেয় সিআইডি। তাদের বিরুদ্ধে তথ্য ও যোগাযোগপ্রযুক্তি আইন এবং পাবলিক পরীক্ষা আইনে পৃথক দুটি অভিযোগপত্র দেয়া হয়।

‘উদ্যানের রাজা’ আখতারুল করীম রুবেল নামে ২০১৪-২০১৫ শিক্ষাবর্ষের এক শিক্ষার্থীকে সাময়িক বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। আইন শৃঙ্খলা পরিপন্থি কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে তাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দিয়ে কেন তাকে স্থায়ীভাবে বহিস্কার করা হবে না তা জানতে চেয়ে কারণ দর্শানোর নোটিশ প্রদানের সিদ্ধান্ত হয়েছে।

আকতারুল করিম রুবেল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হল ছাত্রলীগের উপ দফতর সম্পাদক ও বাংলা বিভাগের শিক্ষার্থী ছিলেন। তার বিরুদ্ধে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে মাদক ব্যবসায়ীদের চারটি গ্রুপ নিয়ন্ত্রণ করার অভিযোগ রয়েছে। পাশাপাশি উদ্যানে ছিনতাইকারী ও মাদক ব্যবসায়ী হিসেবেও এই শিক্ষার্থী পরিচিত।

শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটের এক কর্মচারীর কাছে চাঁদা দাবি করে তাকে মারধরের ঘটনায় রুবেলকে গ্রেপ্তার করা হয়। এখনও তিনি জেলে। এ ঘটনায় ২৮ জুলাই তাকে ছাত্রলীগ থেকেও বহিষ্কার করা হয়।

আরও পড়ুন:
তুরস্ক সেনাবাহিনীর সঙ্গে বাড়বে সহযোগিতা: সেনাপ্রধান
৮ দিনের সফরে তুরস্ক গেলেন সেনা প্রধান
ঈদশুভেচ্ছা বিনিময়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে তুরস্কের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ
সেনাবাহিনী সব সময় জনগণের পাশে থাকবে: সেনাপ্রধান

শেয়ার করুন

 সংশোধনের পুঁজিবাজারে নিষ্প্রভ আরও এক দিন

 সংশোধনের পুঁজিবাজারে নিষ্প্রভ  আরও এক দিন

টানা তৃতীয় সপ্তাহ ধরে দর সংশোধন চলছে পুঁজিবাজারে। বিনিয়োগকারীদের আরও একটি দিন হতাশ করেছে লেনদেন।

লেনদেন আবার কমে ২ হাজার কোটি টাকার নিচে নেমেছে। আগের দিন সূচকের পতন হলেও ১২ সেপ্টেম্বরের পর সর্বোচ্চ লেনদেন হয়। হাতবদল হয় ২ হাজার ২৫৭ কোটি ২৯ লাখ টাকা। প্রায় ৩০০ কোটি টাকা করে লেনদেন দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৯৮০ কোটি ৮৭ লাখ টাকা।

বড় উত্থানের পর সংশোধনের তৃতীয় সপ্তাহে এসেও গতি ফিরে পাচ্ছে না পুঁজিবাজার। সপ্তাহের প্রথম কর্মদিবসে পতনের পর দিন হারানো সূচক ফিরে পেলেও লেনদেন কমে গেছে আবার।

সূচক বাড়লেও বেশির ভাগ শেয়ার দর হারিয়েছে। ১৪১টি কোম্পানির শেয়ারের দর বৃদ্ধির বিপরীতে কমেছে ২০২টি শেয়ারের দর।

দর বৃদ্ধির তুলনায় পতন হওয়া কোম্পানির সংখ্যা দেড় গুণ হলেও সূচক বেড়েছে গ্রামীণফোন, আইসিবি, লাফার্জ হোলসিম ও ব্রিটিশ আমেরিকান ট্যোবাকো কোম্পানির মতো বড় মূলধনি কোম্পানির দর বৃদ্ধিতে।

এই চারটি কোম্পানির কারণেই সূচকে যোগ হয়েছে ১১.০৪ পয়েন্ট।

অন্যদিকে দরপতন বেশি হয়েছে স্বল্প মূলধনি ও লোকসানি কোম্পানির। সবচেয়ে বেশি পতন হওয়া সাতটি কোম্পানির সবগুলোই লোকসানি, স্বল্প মূলধনি কোম্পানি। এর মধ্যে একটি ২০১৯ সালের পর হিসাবও দিচ্ছে না। গত কয়েক মাসে এসব কোম্পানির শেয়ারদর বেড়েছিল অস্বাভাবিক হারে।

গত ৯ সেপ্টেম্বর থেকে এই প্রবণতা শুরু হয়েছে। সূচক এক দিন বাড়লে পরদিন কমে- লেনদেনেও একই প্রবণতা।

টানা তিন সপ্তাহ রোববার সূচকের পতনে লেনদেন শুরু হলেও পরদিনই আবার বেড়েছে সূচক।

আগের দিন সূচক পড়েছিল ১৩ পয়েন্ট আর সোমবার বেড়েছে ১৪ পয়েন্ট।

তবে লেনদেন আবার কমে ২ হাজার কোটি টাকার নিচে নেমেছে। আগের দিন সূচকের পতন হলেও ১২ সেপ্টেম্বরের পর সর্বোচ্চ লেনদেন হয়। হাতবদল হয় ২ হাজার ২৫৭ কোটি ২৯ লাখ টাকা। প্রায় ৩০০ কোটি টাকা করে লেনদেন দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৯৮০ কোটি ৮৭ লাখ টাকা।

পতন দিয়ে সপ্তাহ শুরুর পর দ্বিতীয় দিন সূচক বাড়ার ঘটনা আগের ‍দুই সপ্তাহেও হয়েছে।

১২ সেপ্টেম্বর রোববার সূচক কমে ৫৬ পয়েন্ট, পরদিন বাড়ে ১৬ পয়েন্ট।

১৯ সেপ্টেম্বর পরের রোববার সূচক পড়ে ৩৭ পয়েন্ট, পরদিন বাড়ে ১৪ পয়েন্ট।

আরও আসছে...

আরও পড়ুন:
তুরস্ক সেনাবাহিনীর সঙ্গে বাড়বে সহযোগিতা: সেনাপ্রধান
৮ দিনের সফরে তুরস্ক গেলেন সেনা প্রধান
ঈদশুভেচ্ছা বিনিময়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে তুরস্কের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ
সেনাবাহিনী সব সময় জনগণের পাশে থাকবে: সেনাপ্রধান

শেয়ার করুন

অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কা, রাজমিস্ত্রি নিহত

অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কা, রাজমিস্ত্রি নিহত

জামালপুরে দুর্ঘটনার পর স্থানীয়রা ট্রাকটি আটক করলেও পালিয়ে যায় ট্রাকের চালক ও হেলপার। ছবি: নিউজবাংলা

জামালপুর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মো. অনিক জানান, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত চারজনকে ভর্তি করার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুপুরের দিকে রকিবুল মারা যান। বাকি তিনজন চিকিৎসাধীন।

জামালপুরের মেলান্দহে অটোরিকশায় ট্রাকের ধাক্কায় একজন নিহত হয়েছেন। এ দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন তিনজন।

উপজেলার চরবানি পাকুরিয়া ইউনিয়নের তালতলা এলাকায় সোমবার সকাল ৮টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহত রাজমিস্ত্রি রকিবুল টিকাদারের বাড়ি মেলান্দহ উপজেলার সাধুপুর গ্রামে।

আহতরা হলেন একই গ্রামের নুরু শেখ, সুরুজ মিয়া ও মিলন মিয়া। তারা সবাই জেলা জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকতা (ওসি) এম এম মঈনুল ইসলাম জানান, সকালে মেলান্দহের ঝিনাই ব্রিজের পরে দেওয়ানগঞ্জগামী একটি ট্রাক জামালপুরগামী অটোরিকশাটিকে সামনে থেকে ধাক্কা দেয়। এতে অটোরিকশার চার যাত্রী গুরুতর আহত হন।

জামালপুর জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মো. অনিক জানান, সড়ক দুর্ঘটনায় আহত চারজনকে ভর্তি করার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় দুপুরের দিকে রকিবুল মারা যান। বাকি তিনজন চিকিৎসাধীন।

ওসি মঈনুল জানান, দুর্ঘটনার পর স্থানীয়রা ট্রাকটি আটক করলেও পালিয়ে যান ট্রাকের চালক ও হেলপার।

এই ঘটনায় পুলিশ কোনো অভিযোগ পায়নি বলেও জানান ওসি।

আরও পড়ুন:
তুরস্ক সেনাবাহিনীর সঙ্গে বাড়বে সহযোগিতা: সেনাপ্রধান
৮ দিনের সফরে তুরস্ক গেলেন সেনা প্রধান
ঈদশুভেচ্ছা বিনিময়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে তুরস্কের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ
সেনাবাহিনী সব সময় জনগণের পাশে থাকবে: সেনাপ্রধান

শেয়ার করুন

সাপের কামড়ে নারীসহ মৃত ২

সাপের কামড়ে নারীসহ মৃত ২

মৃত মোকাদ্দেস হোসেনের ছোট ভাই হাবিবুর রহমান জানান, ভোররাত সাড়ে ৪টার দিকে তার ভাই প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গেলে গোখড়া সাপ তাকে দংশন করে। আর দক্ষিণ মনোহরপুর গ্রামের গৃহবধূ রোকসানা বেগমকে গভীর রাতে ঘুমন্ত অবস্থায় সাপ কামড় দেয়।

ঝিনাইদহের শৈলকুপায় সাপের কামড়ে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে।

উপজেলার রঘুনন্দনপুর ও দক্ষিণ মনোহরপুর গ্রামে রোববার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

মৃতরা হলেন, রঘুনন্দনপুর গ্রামের মোকাদ্দেস হোসেন ও দক্ষিণ মনোহরপুর গ্রামের আজগার আলির স্ত্রী রোকসানা বেগম।

মৃত মোকাদ্দেস হোসেনের ছোট ভাই হাবিবুর রহমান জানান, ভোররাত সাড়ে ৪টার দিকে তার ভাই প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে গেলে গোখড়া সাপ তাকে দংশন করে। প্রথমে তাকে স্থানীয় ওঝার কাছে নিয়ে যাওয়া হয়।

সেখানে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে সকাল ৮টার দিকে তাকে শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়া হলে চিকিৎসক মোকাদ্দেসকে মৃত ঘোষণা করেন।

শৈলকুপা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিক্যালের অফিসার কনক জানান, তার পায়ে দুটি দংশনের চিহ্ন রয়েছে। স্থানীয় কবিরাজ দেখিয়ে রোগীকে অনেক দেরিতে হাসপাতালে আনা হয়েছে। হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু হয়েছে।

এদিকে নিত্যানন্দপুর ইউনিয়নের ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য বলাই কুমার বিশ্বাস জানান, দক্ষিণ মনোহরপুর গ্রামের গৃহবধূ রোকসানা বেগম ঘরে ঘুমিয়ে ছিলেন। গভীর রাতে তাকে সাপ কামড় দেয়।

পরে যন্ত্রণা শুরু হলে স্বজনরা তাকেও প্রথমে গ্রাম্য ওঝার কাছে নিয়ে যান। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে ঝিনাইদহ সদর হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান তিনি।

আরও পড়ুন:
তুরস্ক সেনাবাহিনীর সঙ্গে বাড়বে সহযোগিতা: সেনাপ্রধান
৮ দিনের সফরে তুরস্ক গেলেন সেনা প্রধান
ঈদশুভেচ্ছা বিনিময়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে তুরস্কের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ
সেনাবাহিনী সব সময় জনগণের পাশে থাকবে: সেনাপ্রধান

শেয়ার করুন

ভারতীয় ঋণের প্রকল্পে অর্থ ছাড় সহজ চান রেলমন্ত্রী

ভারতীয় ঋণের প্রকল্পে অর্থ ছাড় সহজ চান রেলমন্ত্রী

রেল ভবনে সোমবার বঙ্গবন্ধু সেতু-বগুড়া রেললাইন প্রকল্পে পরামর্শক সেবাবিষয়ক চুক্তি সই হয়। ছবি: নিউজবাংলা

রেলপথমন্ত্রী বলেন, ‌‘আমাদের যে প্রজেক্টগুলো এলওসির অর্থায়নে হচ্ছে সেগুলো যাতে ওয়ান স্টপ সার্ভিসের মাধ্যমে আরও দ্রুত করা যায়, সে বিষয়ে ভারতীয় হাইকমিশনারের মাধ্যমে ভারত সরকারের কাছে অনুরোধ করছি।’

ইন্ডিয়ান লাইন অফ ক্রেডিট (এলওসি) বা ভারতীয় ঋণের প্রকল্পগুলোতে অর্থ ছাড়সহ যাবতীয় বিষয় আরও সহজ করার আহ্বান জানিয়েছেন রেলপথমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন।

রেল ভবনে সোমবার বঙ্গবন্ধু সেতু-বগুড়া রেললাইন প্রকল্পে পরামর্শক সেবাবিষয়ক চুক্তি সই অনুষ্ঠানে তিনি এ আহ্বান জানান।

মন্ত্রী বলেন, ‌‘আমাদের যে প্রজেক্টগুলো এলওসির অর্থায়নে হচ্ছে, সেগুলো যাতে ওয়ান স্টপ সার্ভিসের মাধ্যমে আরও দ্রুত করা যায়, সে বিষয়ে ভারতীয় হাইকমিশনারের মাধ্যমে ভারত সরকারের কাছে অনুরোধ করছি। কিছু বিষয়ে দেরি হয়। উভয় সরকারের আপত্তি থাকে। সেগুলো যাতে দ্রুত করা, আরেকটু সহজীকরণ করা যায়।

‘এগুলো বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে এবং অর্থ প্রদানের ক্ষেত্রে আর একটু সচেতন করা যায় কি না, সেগুলো তারা ভেবে দেখবেন।’‌‌‌‌

মন্ত্রী বলেন, ‘প্রকল্পগুলো যাতে ঠিক সময়ে শেষ হয় এবং মানসম্মত হয়, সে বিষয়েও সহযোগিতা চাচ্ছি। আজকে যে প্রকল্পে চুক্তি হয়েছে, কনসালট্যান্ট প্রতিষ্ঠান যেন সময়মতো কাজ শেষ করে, সচেতন হয়, সে আহ্বান জানাচ্ছি।’

চুক্তি সই অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন রেল মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. সেলিম রেজা, ভারতীয় হাইকমিশনার বিক্রম কুমার দোরাইস্বামীসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে বগুড়া পর্যন্ত সরাসরি রেললাইন নির্মাণ করছে সরকার। এতে এ রুটের দূরত্ব ১৮৭ কিলোমিটার থেকে কমে ৭৫ কিলোমিটারে নেমে আসবে।

‘কনস্ট্রাকশন অফ ডুয়েলগেজ রেলওয়ে লাইন ফ্রম বগুড়া টু শহীদ এম মনসুর আলী স্টেশন, সিরাজগঞ্জ অফ বাংলাদেশ রেলওয়ে’ নামের ভারতীয় ঋণের এ প্রকল্পে পরামর্শক সেবাবিষয়ক চুক্তি সই হয়েছে।

চুক্তির আওতায় ভারতের রাইট লিমিটেড ও আরভি অ্যাসোসিয়েটস আর্কিটেক্ট ইঞ্জিনিয়ারিং অ্যান্ড কনসালট্যান্ট লিমিটেড যৌথভাবে এ প্রকল্পে পরামর্শ সেবা দেবে।

সংস্থা দুটির সঙ্গে ৯৭ কোটি ৫৬ লাখ টাকার পরামর্শক চুক্তি সই করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে।

এ বিষয়ে রেল মন্ত্রণালয়ের সচিব সেলিম রেজা বলেন, ‘ইন্ডিয়া আমাদের পরীক্ষিত বন্ধু। এই প্রকল্পের মতো অন্যান্য প্রকল্পেও তারা বাংলাদেশকে সাহায্য করবে বলে আমি আশা করছি।

‘এই প্রকল্পের মাধ্যমে বগুড়া থেকে ঢাকার দূরত্ব এবং সময় অনেক কমে যাবে।’

ঢাকায় ভারতের হাইকমিশনার বিক্রম দোরাইস্বামী বলেন, ‘বাংলাদেশের পুরুলিয়া নেটওয়ার্ক আপগ্রেডেশনের সুযোগ রয়েছে। ডুয়েলগেজ ট্র্যাক নির্মাণ, প্যাসেঞ্জার সার্ভিস, ক্যাটারিং সার্ভিস, কার্গো সার্ভিস সবকিছু আধুনিক হতে পারে। বাংলাদেশ ও ভারতের রেল নেটওয়ার্কের দীর্ঘ ইতিহাস রয়েছে। আমি বিশ্বাস করি আমরা পরস্পর এই খাতের উন্নয়নে অনেক দূর কাজ করতে পারি।

‘প্রকল্প বাস্তবায়ন ক্যাপাসিটি বিল্ডিং থেকে শুরু করে সব ক্ষেত্রে কাজের সুযোগ রয়েছে। বাংলাদেশের যেকোনো প্রকল্পের কাজ করতে ভারত আগ্রহী এবং যথাসময়ে শেষ করার বিষয়ে যাবতীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করতে চায় ভারত।’

প্রকল্পটিতে ব্যয় হবে ৫ হাজার ৫৭৯ কোটি ৭০ লাখ টাকা। ভারতের তৃতীয় এলওসির আওতায় এতে ভারত সরকার ৩ হাজার ১৪৬ কোটি ৬০ লাখ টাকা ঋণ দেবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৫ সালের নভেম্বরে বগুড়া সফরে বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে বগুড়া হয়ে রংপুর পর্যন্ত রেললাইন নির্মাণের নির্দেশ দেন।

বর্তমানে বগুড়া এবং রংপুরের মধ্যে সরাসরি রেল যোগাযোগ আছে। কিন্তু বগুড়া থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত বিদ্যমান ডুয়েল গেজ লাইনটি কাহালু সান্তাহার-আব্দুলপুর-ঈশ্বরদী বাইপাস-জামতৈল-শহীদ এম মনসুর আলী রুটে প্রায় ১৮৭ কিমি দীর্ঘ। তাই সরকার শহীদ এম মনসুর আলী স্টেশন থেকে বগুড়া রায়পুর-রায়গঞ্জ-শেরপুর-রানিরহাট রুটে সরাসরি রেল সংযোগ নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়‌।

এতে বগুড়া স্টেশন থেকে শহীদ এম মনসুর আলী স্টেশনের মধ্যকার রুটের দৈর্ঘ্য হবে প্রায় ৭৫ কিলোমিটার। এ ছাড়াও রানিরহাট স্টেশন থেকে কাহালু স্টেশনের মধ্যে রুটে ১১.৫ কিলোমিটার রেললাইন নির্মাণ হবে।

বগুড়া ও সিরাজগঞ্জের মধ্যে সরাসরি এ রেল যোগাযোগের ফলে প্রায় ১১২ কিলোমিটার দৈর্ঘ্যের পথ এবং প্রায় তিন ঘণ্টা ভ্রমণের সময় কমবে। এ রুটের মাধ্যমে দেশের উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলের সঙ্গে ঢাকাসহ অন্যান্য এলাকার সরাসরি রেল যোগাযোগ নিশ্চিত হবে।

আরও পড়ুন:
তুরস্ক সেনাবাহিনীর সঙ্গে বাড়বে সহযোগিতা: সেনাপ্রধান
৮ দিনের সফরে তুরস্ক গেলেন সেনা প্রধান
ঈদশুভেচ্ছা বিনিময়ে পার্বত্য চট্টগ্রামে সেনাপ্রধান
সেনাপ্রধানের সঙ্গে তুরস্কের রাষ্ট্রদূতের সাক্ষাৎ
সেনাবাহিনী সব সময় জনগণের পাশে থাকবে: সেনাপ্রধান

শেয়ার করুন